ইমরান-মাখোঁসহ ১৪ নেতার ফোনে নজরদারি

ইমরান-মাখোঁসহ ১৪ নেতার ফোনে নজরদারি

২০১৯ সালের কোনো একসময়ে ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট ইম্যানুয়েল মাখোঁর ফোনে মরক্কোর সরকার আড়ি পাতে বলে ধারণা করা হচ্ছে। ২০১৯ সালে ভারতের অনুরোধে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের ফোনে আড়ি পাতার উদ্যোগ নেয়া হয়।

ইসরায়েলের ফোন হ্যাকিং সফটওয়্যার পেগাসাস দিয়ে যাদের ফোনে আড়ি পাতা হয়েছিল, তাদের মধ্যে আছেন ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট ইম্যানুয়েল মাখোঁ, পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান, দক্ষিণ আফ্রিকার প্রেসিডেন্ট সিরিল রামাফোসাসহ ১৪ জন রাষ্ট্রনেতা ও সরকারপ্রধান।

ব্রিটিশ দৈনিক দ্য গার্ডিয়ানের প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে এ তথ্য। এতে বলা হয়, পেগাসাসের বিক্রেতা প্রতিষ্ঠান ইসরায়েলের এনএসও কোম্পানির ফাঁস হওয়া ডেটাবেসে এই নেতারা ছাড়াও ৩৪ দেশের কূটনীতিক, সেনাপ্রধান ও শীর্ষ রাজনীতিবিদদের ফোন নম্বর চিহ্নিত হয়েছে।

ফাঁস হওয়া তালিকায় থাকা বেশ কিছু ফোন নম্বর সরবরাহ করেছে এনএসওর গ্রাহক কয়েকটি দেশের সরকার। ইসরায়েলি স্পাইওয়্যার প্রতিষ্ঠানটির দাবি, ফাঁস হওয়া ডেটাবেসের সঙ্গে তাদের কোনো সম্পর্ক নেই।

এনএসওর দাবি, প্রতিষ্ঠানটির গ্রাহকদের কারও লক্ষ্য ছিলেন না ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট। অর্থাৎ নিজস্ব স্পাইওয়্যার পেগাসাস ব্যবহারের মাধ্যমে মাখোঁর ওপর প্রতিষ্ঠানটি নজরদারি করেনি।

তালিকায় থাকা নম্বরের মানেই সেটিতে আড়ি পাতা হয়েছিল, এমনটা নয় বলে দাবি এনএসওর।

কিন্তু তালিকাটিতে যাদের ফোন নম্বর আছে, তাদের সঙ্গে এনএসওর বিভিন্ন সরকারি গ্রাহকদের কোনো না কোনো স্বার্থ জড়িত বলে ধারণা করা হচ্ছে। এদের মধ্যে অনেকের ওপর পরবর্তী সময়ে নজরদারি হয়েছে বলে তাদের ফোনের ফরেনসিক বিশ্লেষণের মাধ্যমে নিশ্চিত হওয়া গেছে।

গুপ্তচরবৃত্তির অভিযোগ অস্বীকার করে এনএসওর দাবি, সন্ত্রাসবাদ ও অপরাধী কার্যকলাপের বিরুদ্ধে বৈধ অনুসন্ধানের অংশ হিসেবে শুধু সরকারি গ্রাহকদের সেবা দেয় নজরদারিতে সহযোগিতা করে প্রতিষ্ঠানটি।

পেগাসাসের মাধ্যমে নজরদারির অভিযোগ সম্মিলিতভাবে খতিয়ে দেখছে ওয়াশিংটন পোস্ট, দ্য গার্ডিয়ানসহ ১০টি দেশের সংবাদমাধ্যমের একটি আন্তর্জাতিক কনসোর্টিয়াম।

ব্যক্তিগত ফোন নম্বর বাছাইয়ের ধরন গভীরভাবে পর্যবেক্ষণ করে নজরদারিতে জড়িত সরকারগুলোকে চিহ্নিত করার চেষ্টা করেছেন অনুসন্ধানী সংবাদকর্মীরা।

ফোনে নজরদারির শিকার শীর্ষ রাজনীতিবিদদের তালিকায় আছেন:

দক্ষিণ আফ্রিকার প্রেসিডেন্ট সিরিল রামাফোসা। তার ফোনে আড়ি পাতা হয়েছিল ২০১৯ সালে। রুয়ান্ডা সরকার তার ওপর নজরদারি চালিয়েছিল বলে ধারণা করা হচ্ছে।

ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট ইম্যানুয়েল মাখোঁ। ২০১৯ সালের কোনো একসময়ে মরক্কোর সরকার তার ফোনে আড়ি পাতে বলে ধারণা করা হচ্ছে। বিষয়টি প্রমাণিত হলে ব্যবস্থা নেয়ার কথা জানানো হয়েছে মাখোঁর কার্যালয় থেকে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মহাপরিচালক তেদ্রোস আধানম। তার প্রতিও ২০১৯ সালে আগ্রহ দেখায় মরক্কো সরকার।

গত সপ্তাহে পদত্যাগ করা লেবাননের সাবেক প্রধানমন্ত্রী সাদ হারিরি। ২০১৮ ও ২০১৯ সালে তার ফোন নম্বর নজরদারির জন্য বাছাই করে সংযুক্ত আরব আমিরাত।

ইউরোপিয়ান কাউন্সিলের প্রেসিডেন্ট চার্লস মিশেল। তিনি বেলজিয়ামের প্রধানমন্ত্রী থাকাকালীন ২০১৯ সালে তার ফোন নম্বরও সরবরাহ করে মরক্কো সরকার।

মরক্কোর রাজা ষষ্ঠ মোহাম্মদ। নিজ দেশের নিরাপত্তা বাহিনীই ২০১৯ সালে তার ওপর নজরদারির উদ্যোগ নেয়।

মরক্কোর প্রধানমন্ত্রী সাদেদিন ওসমানি। তার ওপরেও ২০১৮ ও ২০১৯ সালে নিজ দেশ থেকেই কেউ নজরদারি চালায়।

পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। ২০১৯ সালে ভারতের অনুরোধে তার ওপর নজরদারির উদ্যোগ নেয়া হয়।

এ ছাড়াও তালিকায় আছেন মেক্সিকোর সাবেক প্রেসিডেন্ট ফিরিপ কালডেরন ও যুক্তরাষ্ট্রের ইরান পরমাণু চুক্তিবিষয়ক কূটনীতিক রবার্ট ম্যালে। ম্যালের ওপরেও ২০১৯ সালে নজরদারির আগ্রহ দেখিয়েছিল মরক্কো।

এনএসওর দাবি, যুক্তরাষ্ট্রের কোনো ফোন নম্বরে আড়ি পাতায় প্রতিষ্ঠানটির নজরদারি প্রযুক্তি ব্যবহার করা সম্ভব নয়।

মাখোঁ, রাজা ষষ্ঠ মোহাম্মদ বা তেদ্রোস আধানমের ফোনে কখনও নজরদারি করেনি বলেও দাবি করেছে এনএসও।

এনএসওর আইনজীবীরা জানান, পেগাসাস ব্যবহার করে নজরদারির জন্য নম্বর বাছাই হয়েছিল মানেই এই নয় যে নজরদারি চালানো হয়েছে।

নজরদারি প্রতিষ্ঠানটির দাবি, গ্রাহকদের বিষয়ে তথ্য নেই তাদের কাছে। নজরদারির পর অনুসন্ধান হলেই কেবল এ বিষয়ে প্রতিষ্ঠানটিকে তথ্য দিতে বাধ্য থাকে গ্রাহকরা।

ফরেনসিক পরীক্ষায় ফাঁস হওয়া ডেটাবেস থেকে প্রাপ্ত ৬৭টি ফোন নম্বরের নমুনা পরীক্ষা করে ৩৭টিতে পেগাসাস ব্যবহার করে নজরদারির প্রমাণ মিলেছে। সবগুলো ফোন নম্বরই মানবাধিকারকর্মী, সাংবাদিক ও আইনজীবীদের।

আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংস্থা অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনালের সিকিউরিটি ল্যাব এসব ফরেনসিক বিশ্লেষণে সহযোগিতা করেছে।

ফাঁস হওয়া তথ্যে আভাস মিলেছে, মিসরের প্রধানমন্ত্রীসহ দেশটির বেশ কয়েকজন শীর্ষ সরকারি কর্মকর্তাদের ওপরে নজরদারির আগ্রহ দেখিয়েছিল সৌদি আরব ও সংযুক্ত আরব আমিরাত। যদিও স্বৈরশাসক হিসেবে পরিচিত মিসরের প্রেসিডেন্ট আব্দেল ফাত্তাহ আল-সিসির সঙ্গে সৌদি ও আমিরাতের সুসম্পর্ক বিদ্যমান।

এ ছাড়া যুক্তরাষ্ট্রঘেঁষা ইরাকের প্রেসিডেন্ট বারহাম সালেহর ওপরেও নজরদারি করতে চেয়েছিল সৌদি ও আমিরাত।

এ বিষয়ে কোনো প্রতিক্রিয়া জানায়নি সৌদি আরব বা আরব আমিরাত।

আরও পড়ুন:
রাহুল গান্ধী, মমতার ভাগনের ফোনেও চলেছে নজরদারি
সরকারপ্রধান, মন্ত্রীরাও পেগাসাসের নজরদারিতে
গোয়েন্দা হানা: বেশি অনিরাপদ আইফোন

শেয়ার করুন

মন্তব্য