× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট বাংলা কনভার্টার নামাজের সময়সূচি আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

বাংলাদেশ
Khaleda Zia is running the country from December 10 Kader
google_news print-icon

১০ ডিসেম্বর থেকে না খালেদা জিয়া দেশ চালান: কাদের

১০-ডিসেম্বর-থেকে-না-খালেদা-জিয়া-দেশ-চালান-কাদের
আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। ফাইল ছবি
গত ৮ অক্টোবর আমান উল্লাহ আমান বলেন, ‘এই বাংলাদেশ চলবে না, এই বাংলাদেশ চলবে আগামী ১০ ডিসেম্বরের পরে চলবে বেগম খালেদা জিয়ার কথায় ও দেশনায়ক তারেক রহমানের কথায়।' দুদিন পর  শহীদ উদ্দীন চৌধুরী এ্যানি বলেন, ‘১০ তারিখের পর দেশনেত্রী খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে দেশ চলবে। আর কোনোভাবে ছাড় দেয়া হবে না।’

বিএনপির ঢাকা বিভাগীয় সমাবেশের দিন থেকে দেশ বেগম খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানের নির্দেশে চলবে বলে দলের নেতাদের কাছ থেকে আসা বক্তব্য নিয়ে কটাক্ষ করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

বিভাগীয় সমাবেশ শেষ হয়ে পাওয়ার পাঁচ দিন পর বৃহস্পতিবার সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে যুব মহিলা লীগের সম্মেলনে তিনি বলেন, ‘১০ ডিসেম্বরের পর নাকি খালেদা জিয়া দেশ চালাবেন, কোথায় গেল সেই অহংকার? বাংলাদেশের জনগণ আপনাদের দম্ভ চূর্ণ-বিচূর্ণ করে দিয়েছে।’

১০ ডিসেম্বরের এই সমাবেশ নিয়ে আগের দুই মাস ধরেই রাজনীতিতে ছিল নানা আলোচনা। সেদিন বড় ঘোষণা আসবে, এমন কথা বিএনপির পক্ষ থেকে বলা হচ্ছিল দিনের পর দিন। আর দিনটি ঘিরে সরকার ও আওয়ামী লীগের প্রস্তুতিও ছিল ব্যাপক।

কড়া নিরাপত্তার ব্যবস্থা করে পুলিশ, বিএনপির কর্মসূচির দিন ঢাকায় এলাকায় এলাকায় অবস্থান নেয় আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীরাও।

জনসভাস্থল নিয়ে আগের কয়েক দিন ধরে দুই পক্ষে বিরোধের মধ্যে ৭ ডিসেম্বর নয়াপল্টনে পুলিশের সঙ্গে বিএনপির সংঘর্ষও হয়ে যায়। প্রাণ হারায় একজন।

বিএনপি সমাবেশটি করতে চেয়েছিল দলীয় কার্যালয়ের সামনে। পুলিশ অনুমতি দেয় সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে। সংঘর্ষের পরদিনও বিএনপি অনড় মনোভাব দেখায়। পরে গ্রেপ্তার হন মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর ও স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস। এরপর নাটকীয়ভাবে সমাবেশের স্থল ঠিক হয় ঢাকার এক প্রান্ত সায়েবাদাব লাগোয়া গোলাপবাগ মাঠ। উত্তেজনা থাকলেও শান্তিপূর্ণভাবেই শেষ হয় সমাবেশ। সেখান থেকে বিএনপির সাত সংসদ সদস্যের পদত্যাগ ছাড়া এমন কোনো ঘোষণাও আসেনি। পুরোনো দাবিগুলোকে একসঙ্গে ১০ দফায় তুলে ধরে মিছিলের মতো নমনীয় কর্মসূচি ঘোষণা হয়েছে।

তবে বিএনপির ঘোষণা ছিল অন্য রকম। গত ৮ অক্টোবর ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে এক আলোচনায় দলের ঢাকা মহানগর উত্তর কমিটির আহ্বায়ক আমানউল্লাহ আমান বলেন, ‘এই বাংলাদেশ চলবে না, এই বাংলাদেশ চলবে আগামী ১০ ডিসেম্বরের পরে চলবে বেগম খালেদা জিয়ার কথায় ও দেশনায়ক তারেক রহমানের কথায়। এর বাইরে কোনো দেশ চলবে না কারও কথায়।

‘ভায়েরা প্রস্তুতি নিন, ওই কাঁচপুর ব্রিজ, ওই টঙ্গী ব্রিজ, এই দিকে মাওয়া রোড, ওই দিকে আরিচা রোড, সারা বাংলাদেশ, টেকনাফ থেকে তেঁতুলিয়া, রূপসা থেকে পাথুরিয়া কর্মসূচি আসছে। সারা বাংলাদেশ বন্ধ করে দেব।’

দুই দিন পর লক্ষ্মীপুরে বিএনপির এক সমাবেশে দলের প্রচার সম্পাদক শহীদ উদ্দীন চৌধুরী এ্যানি বলেন, ‘১০ ডিসেম্বরের আগে সংসদ ভেঙে দিতে হবে। ১০ তারিখের পর দেশনেত্রী খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে দেশ চলবে। আর কোনোভাবে ছাড় দেয়া হবে না।’

তিনি আরও বলেন, ‘খুব শিগগির তারেক রহমান যুক্তরাজ্য থেকে দেশে আসবেন। খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানের বিরুদ্ধে এখনও ষড়যন্ত্র চলছে। কোনো ষড়যন্ত্রই কাজে আসবে না। অনতিবিলম্বে তাদের সব মামলা প্রত্যাহার ও খালেদা জিয়াকে মুক্তি দিতে হবে।’

‘যাদের হাতে রক্ত, তারা করবে রাষ্ট্র মেরামত!’

১০ ডিসেম্বর শেষ হওয়ার পর বিএনপি নেতারা বলছেন রাষ্ট্র মেরামতের কথা। যুব মহিলা লীগের সম্মেলনে এসে তারও জবাব দেন কাদের।

আওয়ামী লীগের নেতা বলেন, ‘বিএনপির এক নেতা বলেছেন, ‘রাষ্ট্র মেরামতের রূপরেখা তৈরি করছেন, ঘোষণা দেবেন। এটা বিএনপি তৈরি করবে? যাদের হাতে ১৫ আগস্ট, ৩ নভেম্বর ও ২১ আগস্টের রক্তের দাগ, তারা করবে রাষ্ট্র মেরামত?’

বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের শাসনামলে বঙ্গবন্ধুর খুনিদের বিচার থেকে দায়মুক্তি দিয়ে জারি করা ইনডেমনিটি অধ্যাদেশ সংবিধানের অংশ করা নিয়েও কথা বলেন আওয়ামী লীগ নেতা।

তিনি বলেন, ‘বঙ্গবন্ধুর খুনিদের মুক্তি দিতে যারা আমাদের সংবিধান সংশোধন করেছে। ৫ বার যারা দুর্নীতিতে বাংলাদেশকে বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন করেছে, তারা করবে রাষ্ট্র মেরামত?

‘যারা আমাদের দেশের হাজার হাজার কোটি টাকা বিদেশে পাচার করেছে, যারা দণ্ডিত হয়েছে, তারা করবে রাষ্ট্র মেরামত?’

তারেক রহমানের কথা তুলে কাদের বলেন, ‘মুচলেকা দিয়ে লন্ডনে চলে গেছেন, তিনি হবেন আপনাদের নেতা?’

১৯৭৫ এর ১৫ আগস্ট পলাশীর ঘটনার পুনরাবৃত্তি ঘটেছে মন্তব্য করে আওয়ামী লীগ নেতা বলেন, ‘পলাশীর মীর জাফর ও ইয়ার লতিফের জায়গায় ১৫ আগস্টে ছিল খুনি মোশতাক ও জিয়াউর রহমান।

‘পৃথিবীর ইতিহাসের কোনো হত্যাকাণ্ডে, কোনো অবলা নারী, অবুঝ শিশু টার্গেট হয়নি। কিন্তু ১৫ আগস্টে হয়েছে। পৃথিবীর ইতিহাসের নৃশংস হত্যাকাণ্ড ছিল এটি।’

কাদের বলেন, `শেখ হাসিনা নিজের টাকায় পদ্মা সেতু বানিয়েছেন, একদিনে ১০০ সেতু উদ্বোধন। মেট্রোরেল উদ্বোধন হবে, চট্টগ্রামে বঙ্গবন্ধু টানেল হয়েছে। এ কারণে বড় জ্বালা, বিএনপির অন্তর্জ্বালা। জ্বালায় জ্বালায় মরে। কেন এগুলো হলো, কেন এগুলো করলেন? আর সেজন্যই গালগল্প বুলি আওড়াচ্ছেন।’

নির্বাচন এবং তার আগে বিরোধী দলের সম্ভাব্য আন্দোলন মোকাবিলা করতে যুব মহিলা লীগকে প্রস্তুত হওয়ার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, ‘প্রস্তুত হয়ে যান। আবারও সংগ্রাম, আবারও আন্দোলন মোকাবিলা হবে। নির্বাচনে আবারও মোকাবিলা হবে।

‘যুব মহিলা লীগ রাজনীতিতে শেখ হাসিনার এক বিস্ময়কর আবিষ্কার। রাজপথে নিপীড়ন, নির্যাতন, জেল জুলুমের ইতিহাস যুব মহিলা লীগের। আন্দোলন-সংগ্রামে তারা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছে।’

যুব মহিলা লীগের বিদায়ী কমিটির সভাপতি নাজমা আক্তারের সভাপতিত্বে ও অপু উকিলের সঞ্চালনায় এতে প্রধান অতিথি ছিলেন প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ হাসিনা।

সম্মেলন শেষে সংগঠনের সভাপতি হিসেবে আলেয়া ডেইজি সারোয়ার এবং সাধারণ সম্পাদক হিসেবে শারমিন সুলতানা লিলির নাম ঘোষণা করা হয়।

আরও পড়ুন:
মানুষের আতঙ্ক দূর হয়েছে: ওবায়দুল কাদের
ওবায়দুল কাদেরই কি আবার সাধারণ সম্পাদক?
সংশয় আর ভয়ে বন্ধ দোকানপাট
নয়াপল্টনে গেলেন না? বিএনপিকে কাদের
১৩ ও ২৪ ডিসেম্বর সারা দেশে বিএনপির মিছিল

মন্তব্য

আরও পড়ুন

বাংলাদেশ
Mild heat wave in 5 districts including Chuadanga

চুয়াডাঙ্গাসহ ৫ জেলায় মৃদু তাপপ্রবাহ

চুয়াডাঙ্গাসহ ৫ জেলায় মৃদু তাপপ্রবাহ চুয়াডাঙ্গার চৌরাস্তার মোড়। ছবি: উইকিমিডিয়া কমন্স
তাপপ্রবাহের বিষয়ে পূর্বাভাসে বলা হয়, রাজশাহী, পাবনা, সিরাজগঞ্জ, যশোর ও চুয়াডাঙ্গা জেলার ওপর দিয়ে মৃদু তাপপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে এবং তা অব্যাহত থাকতে পারে।

উচ্চ তাপমাত্রার জন্য আলোচিত চুয়াডাঙ্গাসহ দেশের পাঁচ জেলার ওপর দিয়ে মৃদু তাপপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে জানিয়ে বাংলাদেশ আবহাওয়া অধিদপ্তর সোমবার বলেছে, এটি অব্যাহত থাকতে পারে।

রাষ্ট্রীয় সংস্থাটি আজ সকাল ৯টা থেকে পরবর্তী ৭২ ঘণ্টার আবহাওয়ার পূর্বাভাসে এমন বার্তা দিয়েছে।

পূর্বাভাসে সিনপটিক অবস্থা নিয়ে বলা হয়, লঘুচাপের বর্ধিতাংশ পশ্চিমবঙ্গ থেকে উত্তর-পশ্চিম বঙ্গোপসাগর পর্যন্ত বিস্তৃত। মৌসুমি বায়ু বাংলাদেশের ওপর কম সক্রিয় এবং উত্তর বঙ্গোপসাগরে মাঝারি অবস্থায় আছে।

আজ সকাল ৯টা থেকে পরবর্তী ২৪ ঘণ্টায় বৃষ্টিপাত নিয়ে পূর্বাভাসে বলা হয়, রংপুর, ময়মনসিংহ, সিলেট ও চট্টগ্রাম বিভাগের অনেক জায়গা এবং রাজশাহী, ঢাকা, খুলনা ও বরিশাল বিভাগের দুই-এক জায়গায অস্থায়ীভাবে দমকা হাওয়াসহ হালকা থেকে মাঝারি ধরনের বৃষ্টি অথবা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে। সেই সঙ্গে রংপুর, ময়মনসিংহ, সিলেট ও চট্টগ্রাম বিভাগের কোথাও কোথাও মাঝারি ধরনের ভারি থেকে অতি ভারি বর্ষণ হতে পারে।

তাপমাত্রার বিষয়ে অধিদপ্তর জানায়, সারা দেশে দিন ও রাতের তাপমাত্রা প্রায় অপরিবর্তিত থাকতে পারে।

তাপপ্রবাহের বিষয়ে পূর্বাভাসে বলা হয়, রাজশাহী, পাবনা, সিরাজগঞ্জ, যশোর ও চুয়াডাঙ্গা জেলার ওপর দিয়ে মৃদু তাপপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে এবং তা অব্যাহত থাকতে পারে।

আরও পড়ুন:
ভারি বর্ষণ হতে পারে সিলেটসহ তিন বিভাগের কোথাও কোথাও
বৃষ্টি হতে পারে
সন্ধ্যার মধ্যে ৯ অঞ্চলে ঝড়-বৃষ্টির আভাস
সমুদ্র বন্দরগুলোতে ৩ নম্বর সতর্ক সংকেত জারি
দুপুরের মধ্যে ৮ অঞ্চলে হতে পারে ঝড়

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Prime Minister inaugurated the program of distribution of stipend and tuition fee to students

শিক্ষার্থীদের উপবৃত্তি টিউশন ফি বিতরণ কার্যক্রম উদ্বোধন প্রধানমন্ত্রীর

শিক্ষার্থীদের উপবৃত্তি টিউশন ফি বিতরণ কার্যক্রম উদ্বোধন প্রধানমন্ত্রীর রাজধানীর ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে সোমবার মাধ্যমিক থেকে স্নাতক (পাস) ও সমমান পর্যায়ের অসচ্ছল ও মেধাবী শিক্ষার্থীদের উপবৃত্তি ও টিউশন ফি বিতরণ কার্যক্রম উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাসহ অতিথিরা। ছবি: ইয়াসিন কবির জয়
ইউএনবি জানায়, অনুষ্ঠানে সর্বোচ্চ মেধাবীদের হাতে বঙ্গবন্ধু সৃজনশীল মেধা অন্বেষণ-২০২৪ এবং বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব স্কলার-২০২৩ তুলে দেন প্রধানমন্ত্রী।

মাধ্যমিক থেকে স্নাতক (পাস) ও সমমান পর্যায়ের অসচ্ছল ও মেধাবী শিক্ষার্থীদের উপবৃত্তি এবং টিউশন ফি বিতরণ কার্যক্রম উদ্বোধন করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

রাজধানীর ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে সোমবার এ কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন তিনি।

ইউএনবি জানায়, অনুষ্ঠানে সর্বোচ্চ মেধাবীদের হাতে বঙ্গবন্ধু সৃজনশীল মেধা অন্বেষণ-২০২৪ এবং বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব স্কলার-২০২৩ তুলে দেন প্রধানমন্ত্রী।

বার্তা সংস্থাটির প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়, শিক্ষামন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রীর শিক্ষা ও সংস্কৃতিবিষয়ক উপদেষ্টা কামাল আবদুল নাসের চৌধুরী এবং শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী বেগম শামসুন নাহার বক্তৃতা করেন।

স্বাগত বক্তব্যে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের সচিব সুলেমান খান বলেন, এ প্রকল্পের মাধ্যমে মাধ্যমিক, উচ্চ মাধ্যমিক এবং স্নাতক ও সমপর্যায়ের ৬৪ লাখ ৭০ হাজারের বেশি শিক্ষার্থীর মধ্যে দুই হাজার ২০৮ কোটি টাকা বিতরণ করা হবে।

তিনি বলেন, চলতি অর্থবছরে গভর্নমেন্ট টু পারসন (জিটুপি) পদ্ধতিতে শিক্ষার্থীদের অনলাইনে মোবাইল ফাইন্যান্সিয়াল সার্ভিসের মাধ্যমে উপবৃত্তি ও টিউশন ফি দেয়া হচ্ছে।

অনুষ্ঠানে ১৫ জন মেধাবী শিক্ষার্থীকে বঙ্গবন্ধু সৃজনশীল মেধা অন্বেষণ-২০২৪ এবং স্নাতকোত্তর পর্যায়ের ২১ জন শিক্ষার্থীকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব স্কলার-২০২৩ দেয়া হয়।

১৫ শিক্ষার্থীকে একটি করে সনদ ও দুই লাখ করে টাকা এবং স্কলার অ্যাওয়ার্ড-২০২৩-এর জন্য নির্বাচিত ২১ শিক্ষার্থীর প্রত্যেককে একটি সনদ ও তিন লাখ করে টাকা দেয়া হয়।

বঙ্গবন্ধু সৃজনশীল মেধা অন্বেষণ-২০২৪ প্রাপ্তদের পক্ষে হাজারীবাগ গার্লস স্কুল অ্যান্ড কলেজের অষ্টম শ্রেণির ছাত্রী নুসরাত জাহান মালিহা, দিনাজপুরের আমেনা-বাকি রেসিডেন্সিয়াল মডেল স্কুল অ্যান্ড কলেজের দশম শ্রেণির ছাত্রী আতিফা রহমান এবং খুলনার সরকারি মজিদ মেমোরিয়াল সিটি কলেজের একাদশ শ্রেণির শিক্ষার্থী পিনাক মুগ্ধা দাস তাদের অনুভূতি ব্যক্ত করে।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব স্কলার-২০২৩ প্রাপ্তদের পক্ষে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগের ছাত্রী জারিন তাসনিম রাইসা, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষা বিভাগের ছাত্র আল ফয়সাল বিন কাশেম কানন তাদের অনুভূতি ব্যক্ত করেন।

আরও পড়ুন:
উভয় দেশের কল্যাণে সহযোগিতার বিষয়ে একমত ঢাকা-দিল্লি: শেখ হাসিনা
বৈঠকে হাসিনা-মোদি
মহাত্মা গান্ধীর প্রতি শেখ হাসিনার শ্রদ্ধা
ভারতে রাষ্ট্রপতি ভবনে শেখ হাসিনাকে উষ্ণ অভ্যর্থনা
ঢাকা-দিল্লি সংলাপের মাধ্যমে বাণিজ্য প্রতিবন্ধকতা দূর করার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Concerns of the Editorial Board regarding the letter from the Police Service Association

পুলিশ সার্ভিস অ্যাসোসিয়েশনের চিঠি নিয়ে সম্পাদক পরিষদের উদ্বেগ

পুলিশ সার্ভিস অ্যাসোসিয়েশনের চিঠি নিয়ে সম্পাদক পরিষদের উদ্বেগ
প্রতিবাদলিপিতে পরিষদ বলেছে, সম্প্রতি দেশেল সাবেক ও বর্তমান উচ্চ এবং নিম্নপদস্থ পুলিশ সদস্যদের অস্বাভাবিক সম্পদের বিষয়ে বিভিন্ন গণমাধ্যমে বেশকিছু প্রতিবেদন প্রকাশিত ও প্রচারিত হয়েছে। প্রকাশিত সংবাদের পরিপ্রেক্ষিতে ঢালাও প্রতিবাদলিপির মাধ্যমে পারস্পরিক দোষারোপ চর্চার বহিঃপ্রকাশ ঘটাচ্ছে বাংলাদেশ পুলিশ অ্যাসোসিয়েশন।

দেশের সব গণমাধ্যমের সম্পাদক বরাবর দেয়া বাংলাদেশ পুলিশ সার্ভিস অ্যাসোসিয়েশনের চিঠির বিষয়ে উদ্বেগ ও প্রতিবাদ জানিয়েছে সম্পাদক পরিষদ।

রোববার এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এই প্রতিবাদ জানায় পরিষদ। খবর বাসসের

প্রতিবাদলিপিতে পরিষদ বলেছে, সম্প্রতি দেশেল সাবেক ও বর্তমান উচ্চ এবং নিম্নপদস্থ পুলিশ সদস্যদের অস্বাভাবিক সম্পদের বিষয়ে বিভিন্ন গণমাধ্যমে বেশকিছু প্রতিবেদন প্রকাশিত ও প্রচারিত হয়েছে। প্রকাশিত সংবাদের পরিপ্রেক্ষিতে ঢালাও প্রতিবাদলিপির মাধ্যমে পারস্পরিক দোষারোপ চর্চার বহিঃপ্রকাশ ঘটাচ্ছে বাংলাদেশ পুলিশ অ্যাসোসিয়েশন।

পরিষদ মনে করে, যারা এসব খবর প্রকাশ করেছেন তাদের দায়িত্ব পালন নিয়ে সংশয় থাকলে যথাযথ নিয়ম ও বিধি অনুসরণ করে সংশ্লিষ্ট সংস্থা প্রেস কাউন্সিলের দ্বারস্থ হতে পারে। তা না করে প্রতিবাদের মাধ্যমে পারস্পরিক দোষারোপ, ভবিষ্যতে বাংলাদেশ পুলিশ বাহিনী সম্পর্কে কোনো ধরনের রিপোর্ট প্রকাশের ক্ষেত্রে অধিকতর সতর্কতা অবলম্বনের নামে গণমাধ্যমকে হুমকি দেয়া হয়েছে, যা স্বাধীন গণমাধ্যম ও নিরপেক্ষ সাংবাদিকতা চর্চার পরিপন্থি।

পাশাপাশি ভবিষ্যতে দুর্নীতির বিরুদ্ধে সরকারের নীতি বাস্তবায়নে গণমাধ্যমকর্মীদের ধারাবাহিক প্রচেষ্টায় পুলিশ বাহিনীর সহযোগিতাও প্রত্যাশা করেছে পরিষদ।

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Oxfam calls for solving the crisis of 28 million displaced people including the Rohingya

রোহিঙ্গাসহ বাস্তুচ্যুত ২৮ লাখ মানুষের সংকট নিরসনের আহ্বান অক্সফ্যামের

রোহিঙ্গাসহ বাস্তুচ্যুত ২৮ লাখ মানুষের সংকট নিরসনের আহ্বান অক্সফ্যামের অক্সফ্যাম রোহিঙ্গাদের পাশাপাশি বাংলাদেশের অভ্যন্তরে জলবায়ুজনিত কারণে বাস্তুচ্যুতদের সংকট নিরসনের আহ্বান জানিয়েছে। ছবি: অক্সফ্যাম
মিয়ানমার থেকে জোরপূর্বক বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীকে নিজ দেশে ফিরিয়ে নিতে আন্তর্জাতিক সমর্থন, উদ্যোগ ও সংহতির প্রয়োজন বলেও মনে করছে অক্সফ্যাম।

মিয়ানমারে জোরপূর্বক বাস্তুচ্যুত হয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়া প্রায় ১০ লাখ রোহিঙ্গা এবং দেশের অভ্যন্তরে জলবায়ু সংশ্লিষ্ট কারণে ঘরবাড়ি ছেড়ে অন্য জায়গায় যাওয়া আরও ১৮ লাখ মানুষের বিদ্যমান সংকট নিরসনের পাশাপাশি পুনর্বাসনে পদক্ষেপ নিতে বৈশ্বিক সম্প্রদায়ের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে আন্তর্জাতিক সংস্থা অক্সফ্যাম ইন বাংলাদেশ।

বিশ্ব শরণার্থী দিবস-২০২৪ উপলক্ষে গত বৃহস্পতিবার এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ আহ্বান জানায় সংস্থাটি।

বিজ্ঞপ্তিতে অক্সফ্যামের সমীক্ষার ডেটা তুলে ধরে বলা হয়, ‘বাংলাদেশে বন্যা ও ঘূর্ণিঝড়সহ পানি সংক্রান্ত দুর্যোগ অভ্যন্তরীণ বাস্তুচ্যুত সৃষ্টির পাশাপাশি খাদ্য নিরাপত্তাহীনতার মতো বিপর্যয়কে প্রভাবিত করছে। এ মুহূর্তে দেশের প্রায় এক কোটি ২০ লাখ মানুষ খাদ্য নিরাপত্তাহীনতার শিকার, যা মোট জনসংখ্যার ১৭ শতাংশ।

‘সাম্প্রতিক ঘূর্ণিঝড় রিমালে ৪৬ লাখ মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে এবং ৪৬ জেলার কৃষির ওপর নেতিবাচক প্রভাব ফেলেছে, যা এ সংকটকে আরও বাড়িয়ে তুলবে। এটি দেশের ভবিষ্যৎ খাদ্য নিরাপত্তার জন্য একটি উল্লেখযোগ্য উদ্বেগ তৈরি করেছে।’

বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়, কক্সবাজারের বিভিন্ন ক্যাম্পে ২০১৭ সাল থেকে অবস্থানরত প্রায় ১০ লাখ (৯ লাখ ৮১ হাজার ৬৪ জন) মিয়ানমারের রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠী এবং সম্প্রতি মিয়ানমারের অভ্যন্তরীণ সংঘর্ষগুলো শত শত রোহিঙ্গাকে বাংলাদেশে সীমানায় আশ্রয় নিতে বাধ্য করছে, যা দেশের শরণার্থী সংকটে নতুন অস্থিরতা তৈরি করছে। এমন পরিস্থিতিতে মানবিক সহায়তা ও টেকসই সমাধানের ওপর জোর দিচ্ছে অক্সফ্যাম।

অক্সফ্যাম ইন বাংলাদেশের কান্ট্রি ডিরেক্টর আশিষ দামলে বলেন, ‘জলবায়ু পরিবর্তন বাংলাদেশের মতো ঝুঁকিপূর্ণ দেশগুলোর বৈষম্যগুলো উন্মোচন করে দিয়েছে। ক্রমাগত জলবায়ু সংশ্লিষ্ট দুর্যোগ দেশের ঝুঁকিপূর্ণ জনগোষ্ঠীর ভোগান্তি আরও বাড়াচ্ছে। একটি দুর্যোগ কাটিয়ে উঠতে না উঠতেই নতুন দুর্যোগের মুখোমুখি হচ্ছে।

‘এমন অবস্থায় সংকট নিরসনে বিশ্বব্যাপী পদক্ষেপ গ্রহণ জরুরি। বিশেষত ধনী দূষণকারী দেশগুলোকে অবশ্যই তাদের কার্বন নির্গমন হ্রাস করতে হবে, বাংলাদেশের মতো জলবায়ু ক্ষতিগ্রস্ত দেশগুলোতে যথাযথ জলবায়ু অর্থ বরাদ্দ দিতে হবে। কারণ জলবায়ু অভিযোজন অর্থের প্রয়োজন; দুর্যোগ পূর্বপ্রস্তুতি ব্যবস্থা এবং সামাজিক সুরক্ষার জন্য অর্থায়ন প্রয়োজন।’

মিয়ানমার থেকে জোরপূর্বক বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীকে নিজ দেশে ফিরিয়ে নিতে আন্তর্জাতিক সমর্থন, উদ্যোগ ও সংহতির প্রয়োজন বলেও মনে করছে অক্সফ্যাম।

দামলে বলেন, ‘আমাদেরকে অবশ্যই রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীসহ সবাইকে রক্ষা করতে হবে। তাদের অধিকার ও মর্যাদা নিশ্চিত করতে হবে।’

আরও পড়ুন:
অক্সফ্যামের নবায়নযোগ্য শক্তি বিতর্ক প্রতিযোগিতায় চ্যাম্পিয়ন বুটেক্স
অক্সফ্যামের দ্বিতীয় আন্তবিশ্ববিদ্যালয় নবায়নযোগ্য শক্তি বিতর্ক প্রতিযোগিতা শুরু
পোশাক শ্রমিকদের আন্দোলনে ‘নিপীড়ন’ বন্ধের আহ্বান অক্সফ্যামের

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Waqar uz Zaman took charge as the army chief

সেনাপ্রধান হিসেবে দায়িত্ব নিলেন ওয়াকার-উজ-জামান

সেনাপ্রধান হিসেবে দায়িত্ব নিলেন ওয়াকার-উজ-জামান প্রধানমন্ত্রী হাসিনার উপস্থিতিতে রোববার গণভবনে নৌবাহিনী প্রধান অ্যাডমিরাল মোহাম্মদ নাজমুল হাসান ও বিমানবাহিনী প্রধান এয়ার মার্শাল হাসান মাহমুদ খান নবনিযুক্ত সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল ওয়াকার-উজ-জামানকে র‍্যাংক ব্যাজ পরিয়ে দেন। ছবি: ফোকাস বাংলা
আন্তঃবাহিনী জনসংযোগ পরিদপ্তর (আইএসপিআর) রোববার বিষয়টি জানিয়েছে।

সেনাবাহিনীর প্রধান হিসেবে দায়িত্বভার গ্রহণ করেছেন লেফটেন্যান্ট জেনারেল ওয়াকার-উজ-জামান।

আন্তঃবাহিনী জনসংযোগ পরিদপ্তর (আইএসপিআর) রোববার বিষয়টি জানিয়েছে।

এর আগে গত ১১ জুন আইএসপিআর জানায়, সেনাবাহিনীর নতুন প্রধান হচ্ছেন লেফটেন্যান্ট জেনারেল ওয়াকার-উজ-জামান। তিন বছরের জন্য তিনি এ দায়িত্ব গ্রহণ করবেন ২৩ জুন।

ওই দিন আইএসপিআরের সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, ২৩ জুন থেকে লেফটেন্যান্ট জেনারেল ওয়াকার-উজ-জামানকে জেনারেল পদে পদোন্নতি দিয়ে ৩ বছরের জন্য সেনাবাহিনীর প্রধান পদে নিয়োগ প্রদান করা হয়েছে।

জেনারেল এস এম শফিউদ্দিন আহমেদ ২০২১ সালের ২৪ জুন সেনাবাহিনীর ১৭তম প্রধান হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণ করেছিলেন। ওয়াকার-উজ-জামান তার স্থলাভিষিক্ত হলেন।

ওয়াকার-উজ-জামান ১৯৮৫ সালের ২০ ডিসেম্বর ১৩তম দীর্ঘমেয়াদি কোর্সের সঙ্গে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীতে কমিশন লাভ করেন।

তিনি ডিফেন্স সার্ভিসেস কমান্ড অ্যান্ড স্টাফ কলেজ, মিরপুর এবং যুক্তরাজ্যের জয়েন্ট সার্ভিসেস কমান্ড অ্যান্ড স্টাফ কলেজ থেকে গ্র্যাজুয়েশন সম্পন্ন করেন।

ওয়াকার-উজ-জামান জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় থেকে মাস্টার্স অফ ডিফেন্স স্টাডিজ এবং যুক্তরাজ্যের কিংস কলেজ, ইউনিভার্সিটি অফ লন্ডন থেকে মাস্টার্স অব আর্টস ইন ডিফেন্স স্টাডিজ ডিগ্রি অর্জন করেন।

দীর্ঘ ৩৯ বছরের বর্ণাঢ্য সামরিক জীবনে তিনি বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পদের পাশাপাশি নবম পদাতিক ডিভিশনের জেনারেল অফিসার কমান্ডিং এবং সাভার এরিয়া কমান্ডার, সেনাসদরে সামরিক সচিব এবং বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর চিফ অব জেনারেল স্টাফ হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

আরও পড়ুন:
মাতৃভূমি রক্ষা করা আমাদের প্রধান কর্তব্য: সেনাপ্রধান
পাহাড়ের পরিস্থিতি শান্ত না হওয়া পর্যন্ত কম্বিং অপারেশন চলবে: সেনাপ্রধান
পেশাগত দক্ষতা দিয়ে সেনাবাহিনী বিদেশেও সুনাম অর্জন করেছে: সেনাপ্রধান
কাতার সফর শেষে দেশে ফিরলেন সেনাপ্রধান
আমিরাত সফর শেষে দেশে ফিরলেন সেনাপ্রধান

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Heavy rains may occur anywhere in the three divisions including Sylhet

ভারি বর্ষণ হতে পারে সিলেটসহ তিন বিভাগের কোথাও কোথাও

ভারি বর্ষণ হতে পারে সিলেটসহ তিন বিভাগের কোথাও কোথাও ভারি বৃষ্টিতে যান চলাচল। ফাইল ছবি
পূর্বাভাসে আজ সকাল ৯টা থেকে পরবর্তী ২৪ ঘণ্টায় বৃষ্টিপাতের বিষয়ে বলা হয়, ‘রংপুর, ময়মনসিংহ ও সিলেট বিভাগের অনেক জায়গা, চট্টগ্রাম বিভাগের কিছু কিছু জায়গা এবং রাজশাহী, ঢাকা, খুলনা ও বরিশাল বিভাগের দুই-এক জায়গায় অস্থায়ীভাবে দমকা হাওয়াসহ হালকা থেকে মাঝারি ধরনের বৃষ্টি অথবা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে। সেই সাথে রংপুর, ময়মনসিংহ ও সিলেট বিভাগের কোথাও কোথাও মাঝারি ধরনের ভারি থেকে অতি ভারি বর্ষণ হতে পারে।’

বন্যায় আক্রান্ত সিলেটসহ দেশের তিনটি বিভাগের কোথাও কোথাও মাঝারি ধরনের ভারি থেকে অতি ভারি বর্ষণ হতে পারে বলে রোববার জানিয়েছে বাংলাদেশ আবহাওয়া অধিদপ্তর।

রাষ্ট্রীয় সংস্থাটি আজ সকাল ৯টা থেকে পরবর্তী ৭২ ঘণ্টার আবহাওয়ার পূর্বাভাসে এমন তথ্য জানায়।

পূর্বাভাসে সিনপটিক অবস্থা নিয়ে বলা হয়, ‘মৌসুমি বায়ু বাংলাদেশের ওপর মোটামুটি সক্রিয় এবং উত্তর বঙ্গোপসাগরে মাঝারি অবস্থায় রয়েছে।’

আজ সকাল ৯টা থেকে পরবর্তী ২৪ ঘণ্টায় বৃষ্টিপাতের বিষয়ে বলা হয়, ‘রংপুর, ময়মনসিংহ ও সিলেট বিভাগের অনেক জায়গা, চট্টগ্রাম বিভাগের কিছু কিছু জায়গা এবং রাজশাহী, ঢাকা, খুলনা ও বরিশাল বিভাগের দুই-এক জায়গায় অস্থায়ীভাবে দমকা হাওয়াসহ হালকা থেকে মাঝারি ধরনের বৃষ্টি অথবা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে। সেই সাথে রংপুর, ময়মনসিংহ ও সিলেট বিভাগের কোথাও কোথাও মাঝারি ধরনের ভারি থেকে অতি ভারি বর্ষণ হতে পারে।’

তাপমাত্রার বিষয়ে অধিদপ্তর জানায়, সারা দেশে দিন ও রাতের তাপমাত্রা সামান্য বাড়তে পারে।

আরও পড়ুন:
বৃষ্টি হতে পারে
সন্ধ্যার মধ্যে ৯ অঞ্চলে ঝড়-বৃষ্টির আভাস
সমুদ্র বন্দরগুলোতে ৩ নম্বর সতর্ক সংকেত জারি
দুপুরের মধ্যে ৮ অঞ্চলে হতে পারে ঝড়
দেশজুড়ে হালকা থেকে মাঝারি বৃষ্টির পূর্বাভাস

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Prime Ministers tribute to Bangabandhu on the 75th founding anniversary of Awami League

আওয়ামী লীগের হীরক জয়ন্তীতে বঙ্গবন্ধুর প্রতি শ্রদ্ধা প্রধানমন্ত্রীর

আওয়ামী লীগের হীরক জয়ন্তীতে বঙ্গবন্ধুর প্রতি শ্রদ্ধা প্রধানমন্ত্রীর সকাল সাতটায় রাজধানীর ধানমন্ডির ৩২ নম্বরে বঙ্গবন্ধু স্মৃতি জাদুঘরে জাতির পিতার প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন প্রধানমন্ত্রী। ছবি: ইয়াসিন কবির জয়
বাসস জানায়, সকাল সাতটায় রাজধানীর ধানমন্ডির ৩২ নম্বরে বঙ্গবন্ধু স্মৃতি জাদুঘরে জাতির পিতার প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন প্রধানমন্ত্রী। পরে তিনি বঙ্গবন্ধুর স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে কিছুক্ষণ নীরবে দাঁড়িয়ে থাকেন।

আওয়ামী লীগের ৭৫তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর (হীরক জয়ন্তী) দিন রোববার জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করেছেন দলটির সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

বাসস জানায়, সকাল সাতটায় রাজধানীর ধানমন্ডির ৩২ নম্বরে বঙ্গবন্ধু স্মৃতি জাদুঘরে জাতির পিতার প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন প্রধানমন্ত্রী। পরে তিনি বঙ্গবন্ধুর স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে কিছুক্ষণ নীরবে দাঁড়িয়ে থাকেন।

রাষ্ট্রীয় বার্তা সংস্থাটির প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়, ব্যক্তিগতভাবে শ্রদ্ধা জানিয়ে দলের জ্যেষ্ঠ নেতাদের নিয়ে জাতির পিতার প্রতিকৃতিতে আরেকবার পুষ্পস্তবক অর্পণ করে বঙ্গবন্ধুর প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করেন আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা।

১৯৪৯ সালের ২৩ জুন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ গঠন হয়, যা পরবর্তী সময়ে দেশের বৃহত্তম রাজনৈতিক দলে পরিণত হয়। দলটি স্বাধিকার, মুক্তিযুদ্ধ ও দেশের গণতান্ত্রিক আন্দোলনগুলোতে নেতৃত্ব দিয়েছে।

আরও পড়ুন:
বৈঠকে হাসিনা-মোদি
মহাত্মা গান্ধীর প্রতি শেখ হাসিনার শ্রদ্ধা
ভারতে রাষ্ট্রপতি ভবনে শেখ হাসিনাকে উষ্ণ অভ্যর্থনা
ঢাকা-দিল্লি সংলাপের মাধ্যমে বাণিজ্য প্রতিবন্ধকতা দূর করার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর
শেখ হাসিনার সফর দ্বিপক্ষীয় অংশীদারত্ব জোরদার করবে: ভারতীয় পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়

মন্তব্য

p
উপরে