ভুল ইউএনওর, দায় মেটাচ্ছে রাষ্ট্রীয় তহবিল

ভুল ইউএনওর, দায় মেটাচ্ছে রাষ্ট্রীয় তহবিল

নারায়ণগঞ্জে সুদের টাকায় ফরিদ আহমেদের কেনা ত্রাণ বিতরণ করছেন ইউএনও আরিফা জহুরা। ছবিটি শনিবার বিকেলে তোলা।

‘প্রশাসন বলছে ক্ষতিপূরণের টাকা ফিরিয়ে দেবে। কিন্তু আমাদের দাবি হলো ইউএনও ভুল করেছে। এর মাসুল কেন সরকার দেবে?  কারণ, সরকারের টাকা জনগণের। যিনি ভুল করেছেন তিনিই টাকা দেবেন। একই সঙ্গে আমরা দাবি জানাই, ফরিদ আহমেদকে ত্রাণ সহায়তা করা হোক।’

নারায়ণগঞ্জে করোনার কারণে নিঃস্ব হয়ে যাওয়া এক ব্যবসায়ী ত্রাণ চেয়ে উল্টো জরিমানার মুখে পড়ার ঘটনায় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা যে ভুল করেছেন, সেটির দায় মেটানো হচ্ছে জনগণের করের টাকায়।

নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার কাশীপুর ইউনিয়নের দেওভোগ নাগবাড়ি এলাকার ফরিদ আহমেদ ১০০ জনের মধ্যে ত্রাণ বিতরণ করতে খরচ করেছেন মোট ৬৫ হাজার টাকা। এই অর্থ জোগাড় হয়েছে তার স্ত্রীর অলংকার বন্ধক রাখার টাকায়।

তিনি থাকেন একটি চারতলা ভবনে। তার একটি গেঞ্জির কারখানা আছে। এ খবর জেনে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আরিফা জহুরা তাকে ত্রাণ বিতরণে বাধ্য করেন।

কিন্তু সেই ভবনটি ফরিদের একার না। তার গেঞ্জির কারখানা ২০২০ সালে করোনার প্রাদুর্ভাবের পর থেকে বন্ধ। তার আয়ের কোনো উপায় নেই। প্রতিবন্ধী সন্তান নিয়ে আছেন বিপাকে।

ত্রাণ বিতরণের পর নিউজবাংলা এসব তথ্য জানতে পেরে সংবাদ প্রকাশ করে ত্রাণ সত্যিই দরকার ছিল ফরিদের, ভুল ইউএনওর শিরোনামে।

শনিবার রাতে এই সংবাদ প্রকাশ হলে তোলপাড়ের মধ্যে রোববার সকালে নারায়ণগঞ্জের জেলা প্রশাসক মোস্তাইন বিল্লাহ নিউজবাংলাকে বলেন, ‘ফরিদ আহমেদের সেই টাকা ফিরিয়ে দেয়া হবে।’

তিনি বলেন, ‘উনি (ফরিদ আহমেদ) দরিদ্র মানুষ। তাই তাকে তার খরচকৃত টাকা ফেরত দিতে বলা হইছে।’

এই টাকা কে দেবে- এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, ‘এই টাকা সরকারি অনুদানের ঐচ্ছিক ফান্ড থেকে দেয়া হবে।’

ভুল ইউএনওর, দায় মেটাচ্ছে রাষ্ট্রীয় তহবিল
রোববার সকাল থেকে প্রশাসনের লোকজন একের পর এক দেখা করতে আসেন ফরিদ আহমেদের সঙ্গে

ভুল করেছেন ইউএনও, তাহলে জনগণের করের টাকা থেকে তার দায় কেন মেটানো হবে- এমন প্রশ্নে জেলা প্রশাসক বলেন, ‘যাদের সাহায্য করা হয়েছে তারাও ওই এলাকার অসহায় মানুষই। তারা এমনিতেও সহায়তা পাওয়ার যোগ্য। তাই সরকারি অনুদান টাকা থেকেই দেয়া হবে।’

তবে নাগরিক সংগঠন সুশাসনের জন্য নাগরিক- সুজনের নারায়ণগঞ্জ মহানগর কমিটির সাধারণ সম্পাদক ধীমান সাহা জুয়েল করের টাকায় ক্ষতিপূরণের যৌক্তিকতা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন।

তিনি বলেন, ‘প্রশাসন বলছে ক্ষতিপূরণের টাকা ফিরিয়ে দেবে। কিন্তু আমাদের দাবি হলো ইউএনও ভুল করেছেন। এর মাশুল কেন সরকার দেবে?

‘কারণ, সরকারের টাকা জনগণের। যিনি ভুল করেছেন তিনিই টাকা দেবেন। একই সঙ্গে আমরা দাবি জানাই, ফরিদ আহমেদকে ত্রাণ সহায়তা করা হোক।’

ফরিদের বাসায় এখন প্রশাসনের ধরনা

রোববার সকাল থেকেই প্রশাসনের ২০ থেকে ২৫ জন মানুষ ফরিদের বাসায় আসতে থাকেন। তারা ফরিদকে আলাদা কক্ষে নিয়ে দরজা বন্ধ করে তার সঙ্গে কথা বলেন।

কিন্তু তারা নিজেদের পরিচয় গণমাধ্যমকে দেননি, আর ফরিদের সঙ্গে কী কথা হয়েছে, সে বিষয়েও কিছু বলেননি।

তবে নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার কাশীপুর ইউনিয়ন ভূমি অফিসের সহকারী কর্মকর্তা নাসিরউদ্দিনের সঙ্গে কথা হয়েছে নিউজবাংলার। তিনি বলেন, ‘উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে আমাদের এখানে পাঠানো হয়েছে। আমরা ফরিদ আহমেদকে নিশ্চিত করেছি, তিনি যে টাকার মালপত্র কিনে বিতরণ করেছেন, সে টাকা ফেরত দেয়া হবে। এবং আমরা পুরো ঘটনাটি তার কাছ থেকে শুনেছি। কিন্তু তা বলতে পারব না। এ বিষয়ে ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা কথা বলবেন।’

ভুল ইউএনওর, দায় মেটাচ্ছে রাষ্ট্রীয় তহবিল
ফরিদ আহমেদের স্ত্রী হরিণা বেগম তাদের ত্রাণ বিতরণে খরচের হিসাব দেখাচ্ছেন

ফরিদ আহমেদ নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আপনারা তো সকাল থেইকা বাড়ি ছিলেন, সবই দেখলেন। সকাল থেকে একের পর এক লোকজন আসতাছে।

‘১১টার দিকে ইউনিয়নের এক কর্মকর্তা আসেন। উনি তো দেড় ঘণ্টা আছিল। কত কথা হইল। ওনারে নাকি উপজেলা অফিস থেকে পাঠাইছে। উনি অনেক কথা জিজ্ঞাসা করছে। সবই তো কইলাম গত কয়দিন যা হইছে। পরে উনি কইল ইউএনও স্যার টাকা দিয়ে দিব আপনারে। এরপর আমার ভাতিজার সাথে ইউএনও স্যারের কথা হয়। ইউএনও নাকি বলছে খরচের মেমো পাঠাইতে। ভাতিজা পাঠায় দিছে। ওই স্যার চলে গেছে।’

ফরিদ বলেন, “এরপর আরও দুইজন আসে। তারাও জিজ্ঞাসা করছে। তাদেরও তো কইলাম। তার কথা হইল, ‘আপনি বাড়ির মালিক নয় এটা তাদের বলে নাই?’ আমি বলছি, তা তো কইছি কিন্তু ওনারা তো আমার কথা শুনেন নাই।”

ফরিদ আহমেদ দুপুরে স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদ সদস্য আইয়ুব আলীর বাসায়ও যান।

এ বিষয়ে তিনি বলেন, ‘দুপুরে মেম্বারের বাসায় গেছিলাম। মেম্বার কইল চিন্তা কাইরেন না টাকা ফেরত পাইবেন।’

ফরিদ আহমেদের ভাতিজা মো. সিয়াম বলেন, ‘সকাল থেকে লোক আসতাছে আর জিজ্ঞাসা করতাছে চাচারে। আমি কথা কইছি কয়েকজনের সাথে। তারা তো যাওয়ার সময় কইতাছে টাকা দিয়া দিব।’

দেখা দিচ্ছেন না ইউএনও

ইউএনও আরিফা জহুরা সকাল থেকেই ফোন ধরছেন না। ১৯ বার কল করার পর তিনি না ধরায় সদর উপজেলা ভবনে তার কার্যালয়ে যান নিউজবাংলার প্রতিনিধি। কিন্তু তার কক্ষে যাওয়ার অনুমতি মেলেনি।

আরিফা বসেন ভবনের দোতলার একটি কক্ষে। নিচতলা দিয়ে ঢুকতে গেলেই বাধা দেন নিরাপত্তাকর্মী। বলেন, ‘অনুমতি লাগবে ভেতরে যেতে।’

ভুল ইউএনওর, দায় মেটাচ্ছে রাষ্ট্রীয় তহবিল
ইউএনও আরিফা বৃহস্পতিবার ফরিদের বাড়িতে গিয়ে তাকে ত্রাণ বিতরণের নির্দেশ দেন। শনিবার নিজের হাতে সেই ত্রাণ বিতরণ করেন।

এই অনুমতি দেবেন ইউএনও নিজে। কিন্তু তিনি ফোন ধরছেন না, এই বিষয়টি জানালে নিরাপত্তাকর্মী বলেন, ‘ফোন ধরলে আইসেন।’

তবে এ ঘটনার আগে ইউএনও ফোন ধরেছেন, তার কক্ষে গিয়ে সাংবাদিকরা বক্তব্যও নিয়ে এসেছেন। এমনকি ফরিদের বাড়িতে গিয়ে ত্রাণ বিতরণ করে আসার পর শনিবার সন্ধ্যায়ও সাংবাদিকরা তার কক্ষে ঢুকেছেন অবাধে। তিনি কথা বলেছেন হাসিমুখেই।

তদন্ত কমিটি

ফরিদ আহমেদকে ত্রাণ বিতরণে বাধ্য করার ঘটনায় তদন্ত কমিটি গঠন করেছে জেলা প্রশাসন।

অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) শামিম ব্যাপারীকে প্রধান করে তিন সদস্যের এই কমিটিকে বুধবারের মধ্যে প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে বলে জানিয়েছেন নারায়ণগঞ্জের জেলা প্রশাসক (ডিসি) মুস্তাইন বিল্লাহ।

তিনি বলেন, ‘তদন্তে যাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠে আসবে, তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে জেলা প্রশাসনের মাধ্যমে।’

ঘটনার শুরু যেভাবে

নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার কাশীপুর ইউনিয়নের দেওভোগ নাগবাড়ি এলাকায় বাসা ফরিদ আহমেদের।

বৃহস্পতিবার ৩৩৩ নম্বরে ফোন করে খাদ্য সহায়তা চান তিনি। খাবার নিয়ে আসেন উপজেলা প্রকল্প কর্মকর্তা আনোয়ার হোসেন, অফিস সহকারী কামরুল ইসলাম। পরে তারা ভবন দেখে ফোন দিলে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আরিফা জহুরা আসেন ঘটনাস্থলে। দেন শাস্তির ঘোষণা।

ইউএনও জানান, সরকার প্রতি প্যাকেটে যে পরিমাণ খাবার দেয় দুস্থদের, সেই পরিমাণ খাবারসহ ১০০ প্যাকেট করে বিতরণ করতে হবে।

ভুল ইউএনওর, দায় মেটাচ্ছে রাষ্ট্রীয় তহবিল
ইউএনওর নির্দেশে ফরিদ আহমেদ স্ত্রীর গয়না বন্ধক রেখে সুদের টাকায় ১০০ প্যাকেট খাবার জোগাড় করতে বাধ্য হন

নির্দেশমতো শনিবার বিকেলে ফরিদ আহমেদ সেই খাবার বিতরণও করেন। আর সেখানে উপস্থিত ছিলেন ইউএনও স্বয়ং।

ঘটনাস্থলে গিয়ে ফরিদের জীবনের কাহিনি জেনেছে নিউজবাংলা। কিন্তু জানেননি ইউএনও।

ফরিদ আহমেদ নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আমাগো বাড়ি আছে। কিন্তু এই বাড়ি ছয় ভাই ও এক বোনের। আমাগো সবার আংশিক ভাগ আছে। এর মধ্যে আমি নিচ তলায় থাকি। আমার ১৬ বছর বয়সী প্রতিবন্ধী ছেলে আছে। মেয়ে মহিলা কলেজে পড়ে। তাদের নিয়া আমার সংসারে অনেক টানাটানি।’

৩৩৩ নম্বরে কেন ফোন

ইউএনও আরিফা জহুরা দাবি করেছেন, ৩৩৩ নম্বরে ফোন করে আসলেই খাবার পাওয়া যায় কি না, সেটি যাচাই করতেই ফোন করেছিলেন ফরিদ।

তবে ফরিদ বলেন উল্টো কথা।

তিনি বলেন, ‘প্রতি ঘণ্টা আমি এফএম রেডিও শুনি। সেখানে শুনছি ৩৩৩ নম্বরে ফোন করলে খাবার আসে। এ জন্য ফোন করছি কিন্তু জানতাম না এটা নিম্ন আয়ের মানুষের। আমিও তো পেটের দায়ে অভাবে পইড়াই ফোন করছি।

‘আমার খাদ্য প্রয়োজন ছিল বলেই ফোন করছি। সেখান থেকে তারা বলছে আপনার আবেদন গ্রহণ করা হইল। পরে তারা ফোন করে নাম, ঠিকানাসহ আমার ব্যক্তিগত তথ্য জিজ্ঞাসা করছে, আমি সব বলছি। এরপর তারা আইসা খাদ্য না দিয়া বরং আমারে ফাইন করে দিয়ে গেছে।’

ভুল ইউএনওর, দায় মেটাচ্ছে রাষ্ট্রীয় তহবিল
করোনার প্রাদুর্ভাবের আগে অভাবী ছিলেন না ফরিদ। তবে ২০২০ সালের মার্চের পর তার গেঞ্জির কারখানা বন্ধ হয়ে যাওয়ায় অভাবে পড়েন তিনি

জরিমানার আদেশের বর্ণনা করে তিনি বলেন, ‘কাশিপুর ইউনিয়নে পরিষদের (ইউপি) সদস্য আইয়ুব আলী আমাকে ডেকে নিয়ে বলেন, আপনি এই খাদ্য পাওয়ার উপযুক্ত নন। এই কথা বলে আমাকে নানাভাবে ধমকাতে থাকেন।

‘পরে আমি ভুলও স্বীকার করেছি। তার কিছুক্ষণ পর ইউএনও স্যার আসেন এবং আমাকে ডেকে নিয়ে নানা প্রশ্ন করার পর ১০০ মানুষকে খাদ্য সহায়তা করার জন্য নির্দেশ দেন। ইউএনও স্যার চলে যাওয়ার পর ইউপি সদস্যসহ অনেক খাদ্য সহায়তা করা না হলে তিন মাসের সাজা হবে বলে জানানো হয়।’

আরও পড়ুন:
ত্রাণ বিতরণে সেই ব্যবসায়ীকে বাধ্য করার ঘটনা তদন্তে কমিটি
ইউএনওর ভুলে ত্রাণ: টাকা ফেরত পাচ্ছেন সেই ব্যবসায়ী
ত্রাণ সত্যিই দরকার ছিল ফরিদের, ভুল ইউএনওর
ত্রাণ চেয়ে পোশাক কারখানা মালিকের ফোন যে কারণে

শেয়ার করুন

মন্তব্য