× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

আন্তর্জাতিক
UK plans to deploy troops to counter protests
hear-news
player
google_news print-icon

উত্তাল ব্রিটেনে সেনা মোতায়েনের পরিকল্পনা

উত্তাল-ব্রিটেনে-সেনা-মোতায়েনের-পরিকল্পনা-
মুদ্রাস্ফীতি ও বেকারত্বের প্রতিবাদে যুক্তরাজ্যে বিক্ষোভ। ছবি: সংগৃহীত
ব্রিটেনের ক্ষমতাসীন কনজারভেটিভ পার্টির চেয়ারম্যান নাদিম জাহাবি রোববার বলেন, ‘ইউনিয়নগুলোর প্রতি আমাদের একটি বার্তা আছে। সেটি  হলো, এখন ধর্মঘটের সময় না। এখন আলোচনা করার সময়। আমরা সামরিক বাহিনী মোতায়েনের কথা ভাবছি। প্রয়োজনে সেনারা অ্যাম্বুলেন্স চালাবে বলেও জানান কনজার্ভেটিভ বাহিনীর প্রধান।’

সরকারি কর্মীরা বিক্ষোভ বন্ধ না করলে বড়দিনের আগে সেনা মোতায়েন হতে পারে যুক্তরাজ্যে। মুদ্রাস্ফীতি ও বেকারত্বের প্রতিবাদে বিভিন্ন খাতে তুমুল আন্দোলন চলছে দেশটিতে। বর্তমানে বিক্ষোভে যোগ দিয়েছে নার্স এবং অ্যাম্বুলেন্স কর্মীরা।

ব্রিটেনের ক্ষমতাসীন কনজারভেটিভ পার্টির চেয়ারম্যান নাদিম জাহাবি রোববার বলেন, ‘ইউনিয়নগুলোর প্রতি আমাদের একটি বার্তা আছে। সেটি হলো, এখন ধর্মঘটের সময় না। এখন আলোচনা করার সময়। আমরা সামরিক বাহিনী মোতায়েনের কথা ভাবছি। প্রয়োজনে সেনারা অ্যাম্বুলেন্স চালাবে বলেও জানান কনজার্ভেটিভ বাহিনীর প্রধান।’

শুরু থেকেই বিক্ষোভ বন্ধের আহ্বান জানিয়ে আসছিল ব্রিটিশ সরকার। তাদের ভাষ্য, মুদ্রাস্ফীতি বেড়ে যাওয়ায় বেতন-ভাতা বাড়ানো সম্ভব হচ্ছে না। এখন যদি তা বাড়ানো হয়, তবে মুদ্রাস্ফীতি ভয়াবহ হয়ে উঠবে।

যুক্তরাজ্যের খুচরা ইলেকট্রিক্যাল পণ্য বিক্রয়ের কোম্পানি কারিসের প্রধান নির্বাহী অ্যালেক্স ব্যালডক জানান, বিক্ষোভ থেকে দূরে থাকতে তারা পণ্য সরবরাহের জন্য রয়্যাল মেইল ব্যবহার করবে না। রয়্যাল মেইল হলো ব্রিটিশ সরকারের পোস্টাল সার্ভিস; ১৫১৬ সালে এটি প্রতিষ্ঠিত হয়।

চলতি বছর রয়্যাল মেইলের পোস্ট এবং পার্সেল বিভাগের কর্মীরা বেতন-ভাতা ও কাজের শর্তাবলি নিয়ে কয়েক দফা আন্দোলন করে। ডিসেম্বরে আরও বড় পরিসরে বিক্ষোভের পরিকল্পনা করছে তারা।

যুক্তরাজ্যে চলমান অর্থনৈতিক মন্দা আর রাজনৈতিক টানাপড়েনের মধ্যে অক্টোবরে প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্যুব নেন সাবেক অর্থমন্ত্রী ঋষি সুনাক। রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা বলছেন, এই মন্দা কাটিয়ে না উঠতে পারলে পরবর্তী নির্বাচনে কনজার্ভেটিভ পার্টি ব্যাপক ভরাভুবির মুখে পড়তে পারে।

দ্য সানডে টাইমসের প্রতিবেদনে বলা হয়, স্বাস্থ্যকর্মী, শিক্ষক এবং দমকল বাহিনীর মতো পাবলিক সেক্টরের কর্মীদের আন্দোলনের অধিকার রোধ করার পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করতে পারেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী সুনাক। নতুন বছরে যদি পরিস্থিতি না ঠিক হয় তবে স্বাস্থ্যকর্মীদের জায়গায় ফার্মাসিস্টদের কাজে লাগাতে পারে ব্রিটিশ সরকার।

চলমান উত্যপ্ত পরিস্থিতিকে কাজে লাগিয়ে সরকারে আসার চেষ্টায় ব্যস্ত দেশটির প্রধান বিরোধীদল-লেবার পার্টি। সংকট নিরসনে তারা সরকারিকর্মীদের সঙ্গে আলোচনায় বসতে কনজারভেটিভদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে।

ব্রিটেনের বিক্ষোভের ঢেউ লেগেছে স্কটল্যান্ডেও। চার দশকের মধ্যে এই দেশটির শিক্ষকরা একটি ভাতার চুক্তি নিয়ে আন্দোলনে নেমেছেন। ইংল্যান্ড এবং ওয়েলসেও হাজার হাজার শিক্ষক এবং শিক্ষাসংশ্লিষ্ট কর্মীরা বেতন এবং তহবিল নিয়ে বিরোধের জেরে ধর্মঘটে নামবেন কিনা তা নিয়ে ভোট দিচ্ছেন।

যুক্তরাজ্যের এমন পরিস্থিতির জন্য আবারও রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনকে দুষেছেন কনজারভেটিভ প্রধান জাহাবি। তার দাবি, ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে যুক্তরাজ্যে জ্বালানির দাম ও মুদ্রাস্ফীতি বেড়েছে।

মন্তব্য

আরও পড়ুন

আন্তর্জাতিক
The Koran was burned in Denmark strongly condemning Bangladesh

এবার ডেনমার্কে পোড়ানো হল কোরআন, ঢাকার নিন্দা

এবার ডেনমার্কে পোড়ানো হল কোরআন, ঢাকার নিন্দা ডেনমার্কে শুক্রবার পবিত্র কোরআন পোড়ানোর পর কট্টরপন্থি লোকজনকে সরাচ্ছে পুলিশ। ছবি: এএফপি
পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক বিবৃতিতে বলা হয়, মুসলমানদের পবিত্র মূল্যবোধ ও ধর্মীয় নিদর্শন অবমাননার এ ধরনের উস্কানিমূলক কর্মকাণ্ডে বাংলাদেশ আবারও গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছে।

সুইডেনের পর এবার ডেনমার্কে পবিত্র কোরআন পোড়ানোর ঘটনা ঘটেছে। দেশটির রাজধানী কোপেনহেগেনে শুক্রবার তুরস্কের দূতাবাসের কাছে অবস্থিত একটি মসজিদ ও তুরস্কের দূতাবাসের কাছে এ ঘটনা ঘটে।এ ঘটনার তীব্র নিন্দা জানিয়েছে বাংলাদেশ।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক বিবৃতিতে বলা হয়, মুসলমানদের পবিত্র মূল্যবোধ ও ধর্মীয় নিদর্শন অবমাননার এ ধরনের উস্কানিমূলক কর্মকাণ্ডে বাংলাদেশ আবারও গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছে।

কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আলজাজিরার প্রতিবেদনে বলা হয়, ডেনমার্কের উগ্র ডানপন্থি রাজনৈতিক কর্মী রাসমুস পালুদান ও তার দল হার্ড লাইনের অনুসারীরা এ ঘটনার সঙ্গে সরাসরি সংশ্লিষ্ট।

এ নিয়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে লাইভে পালুদান বলেন, যুক্তরাষ্ট্র ও তার মিত্রদের সামরিক জোট ন্যাটোতে যতদিন সুইডেনকে অন্তর্ভুক্ত করা না হবে ততদিন এই কর্মসূচি অব্যহত রাখবেন তিনি ও তার অনুসারীরা।

সুইডেন ও ডেনমার্কের দ্বৈত নাগরিকত্ব রয়েছে পালুদানের। গত ২১ জানুয়ারি স্টকহোমে তুরস্কের দূতাবাসের সামনে কোরআন পোড়ানোর ঘটনাতেও সংশ্লিষ্টতা আছে তার। সেদিন সুইডিশ অনুসারীরাই সেদিন এ ঘটনা ঘটিয়েছিল।

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Djokovics father was prevented from entering the court for a photo with supporters of Putin

পুতিনপন্থিদের সঙ্গে ছবি, জকোভিচের বাবাকে মাঠে ঢুকতে বাধা

পুতিনপন্থিদের সঙ্গে ছবি, জকোভিচের বাবাকে মাঠে ঢুকতে বাধা সার্বিয়ান টেনিস তারকা নোভাক জকোভিচ। ছবি: এএফপি
পুতিনপন্থিদের সঙ্গে ছবি তোলার বিষয়ে জার্ডান বলেন, ‘আমি নোভাকের সমর্থকদের সঙ্গে ছবি তুলে ছিলাম। আমার অন্য কোনো উদ্দেশ্য ছিল না।’ 

রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের সমর্থকদের সঙ্গে ছবি তোলায় অস্ট্রেলিয়ান ওপেনের সেমিফাইনালে টেনিস তারকা নোভাক জকোভিচের খেলা মাঠে বসে দেখতে পারলেন না তার বাবা জার্ডান জকোভিচ।

বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়, এ ঘটনার শুরু বুধবার। ওইদিন কোয়ার্টার ফাইনালে আন্দ্রে রুবলেভের বিরুদ্ধে জকোভিচের জয়ের পর রড লেভার অ্যারেনার বাইরে কয়েকজনকে মিছিল করতে দেখা গেছে, যাদের হাতে ছিল রাশিয়ার পতাকা ও পুতিনের ছবি ছিল। সেই মিছিলে জকোভিচের বাবাকেও দেখা গেছে। এমনকি তিনি পুতিনের সমর্থনে স্লোগানও দিয়েছেন।

এদিকে শুক্রবার মেলবোর্নে অস্ট্রেলিয়ান ওপেনের সেমিফাইনালে আমেরিকান টমিকে ৭-৫, ৬-১ ও ৬-২ সেটে হারান নোভাক।

ছেলের খেলা মাঠে বসে দেখা নিয়ে এক বিবৃতিতে জার্ডান বলেন, ‘আমি অস্ট্রেলিয়ায় এসেছি শুধু আমার ছেলেকে সমর্থন দিতে।’

পুতিনপন্থিদের সঙ্গে ছবি, জকোভিচের বাবাকে মাঠে ঢুকতে বাধা



পুতিনপন্থিদের সঙ্গে ছবি তোলার বিষয়ে জার্ডান বলেন, ‘আমি নোভাকের সমর্থকদের সঙ্গে ছবি তুলে ছিলাম। আমার অন্য কোনো উদ্দেশ্য ছিল না।’

অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রী অ্যান্টনি আলবানিজ এরই মধ্যে এ ঘটনার নিন্দা জানিয়ে ইউক্রেনের প্রতি অস্ট্রেলিয়ার সমর্থন পুনর্ব্যক্ত করেছেন।

এ ঘটনায় এক বিবৃতিতে টেনিস অস্ট্রেলিয়ার পক্ষ থেকে বলা হয়, ‘শান্তি ও ইউক্রেন যুদ্ধ বন্ধের পক্ষে থাকার আহ্বান জানাচ্ছি।’

আরও পড়ুন:
যে কারণে ফুটবল মাঠে সাদা কার্ড
নাসিমের বোলিং তাণ্ডব, ঢাকার ষষ্ঠ হার
আফ্রিদির চেয়ারে হারুন
ইউভেন্তুসের শাস্তি, নেমে গেল ৭ ধাপ
সুপার কাপ ফাইনালের আগে ছিটকে গেলেন রিয়ালের ভাজকুয়েজ

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Ukraine is getting Leopard tanks in March

মার্চে লেপার্ড পাচ্ছে ইউক্রেন

মার্চে লেপার্ড পাচ্ছে ইউক্রেন জার্মানির লেপার্ড ট্যাংক। ছবি: এএফপি
যুক্তরাষ্ট্রসহ ইউরোপীয় ইউনিয়নের চাপের মুখে বুধবার ইউক্রেনে লেপার্ড ট্যাংক পাঠাতে সম্মত হয়েছেন জার্মান চ্যান্সেলর ওলাফ শলজ। তিনি জানান, জার্মানি প্রাথমিকভাবে ১৪টি লেপার্ড টু ট্যাংক ইউক্রেনে পাঠানো হবে।

মার্চের শেষে অথবা এপ্রিলের শুরুতে ইউক্রেনে লেপার্ড ট্যাংক পৌঁছাবে বলে জানিয়েছেন জার্মানির প্রতিরক্ষামন্ত্রী বরিস পিস্টোরিয়াস। এছাড়া আগামী কয়েকদিনের মধ্যে ইউক্রেনীয় সেনাদের এ ট্যাংক চালানোর প্রশিক্ষণ দেয়া শুরু হবে বলেও জানিয়েছেন তিনি।

বৃহস্পতিবার জার্মানির প্রতিরক্ষামন্ত্রী এসব তথ্য জানান।

বার্তা সংস্থা এএফপির প্রতিবেদনে জানানো হয়, যুক্তরাষ্ট্রসহ ইউরোপীয় ইউনিয়নের চাপের মুখে বুধবার ইউক্রেনে লেপার্ড ট্যাংক পাঠাতে সম্মত হয়েছেন জার্মান চ্যান্সেলর ওলাফ শলজ।

তিনি জানান, জার্মানি প্রাথমিকভাবে ১৪টি লেপার্ড টু ট্যাংক ইউক্রেনে পাঠানো হবে। কিন্তু কিয়েভের সরকারের চাহিদা আরও বেশি।

ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলদিমির জেলেনস্কি বলেছেন, ৩০০টি লেপার্ড ট্যাংক হলে চলমান যুদ্ধে রাশিয়াকে পরাজিত করবে তার সেনারা।

এদিকে বৃহস্পতিবার ক্রেমলিনের মুখপাত্র দিমিত্রি পেসকোভ পশ্চিমাদের সতর্ক করে বলেছেন, তারা ট্যাংক দিয়ে ইউক্রেন যুদ্ধে সরাসরি যুক্ত হচ্ছে।

লেপার্ড–২ ট্যাংক হলো বিশ্বের অন্যতম প্রথম সারির যুদ্ধট্যাংক। জার্মানির সেনাবাহিনী এবং অনেক ইউরোপীয় দেশের সামরিক বাহিনী এ ট্যাংক ব্যবহার করে।

আরও পড়ুন:
রাশিয়া হারলেই পরমাণু যুদ্ধ, জানালেন পুতিনের সহযোগী
ইউক্রেনে হেলিকপ্টার বিধ্বস্ত, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীসহ নিহত ১৬
নতুন করে মুক্তিযোদ্ধা নিবন্ধনের সুযোগ নেই: মুক্তিযুদ্ধমন্ত্রী
মৃত্যুদণ্ডের রায়ের ৬ বছর পর যুদ্ধাপরাধী গ্রেপ্তার
সবজি চাষে নিরাপদ মানুষের মলমূত্র: গবেষণা

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
After tanks Ukraine eyes warplanes

ট্যাংকের পর যুদ্ধবিমানে নজর ইউক্রেনের

ট্যাংকের পর যুদ্ধবিমানে নজর ইউক্রেনের সোভিয়েত আমলের যুদ্ধবিমান দিয়ে রাশিয়ার সঙ্গে লড়ছে ইউক্রেন। ছবি: এএফপি
ইউক্রেনের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের উপদেষ্টা ইউরি স্যাক বলেন, ‘পরবর্তী বড় বাধা হবে যুদ্ধবিমান পাওয়া। এগুলো হাতে পেলে রণাঙ্গনে বিশাল সুবিধা পাওয়া যাবে।’  

সামরিক জোট ন্যাটোর মিত্রদের কাছ থেকে যুদ্ধে ব্যবহৃত ট্যাংক পাওয়ার নিশ্চয়তার পর তাদের যুদ্ধবিমান দেয়ার তাগিদ দেবে বলে জানিয়েছে ইউক্রেন।

স্থানীয় সময় বুধবার ইউক্রেনকে যুদ্ধে ব্যবহৃত ট্যাংক দেয়ার পরিকল্পনার কথা জানায় জার্মানি ও যুক্তরাষ্ট্র, যাকে ১১ মাস ধরে চলা যুদ্ধের নতুন মোড় হিসেবে দেখা হচ্ছে।

এমন বাস্তবতায় ইউক্রেনের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের উপদেষ্টা ইউরি স্যাক বলেন, ‘পরবর্তী বড় বাধা হবে যুদ্ধবিমান পাওয়া। এগুলো হাতে পেলে রণাঙ্গনে বিশাল সুবিধা পাওয়া যাবে।’

রাশিয়ার সঙ্গে ২০২২ সালের ২৪ ফেব্রুয়ারি থেকে যুদ্ধরত ইউক্রেনের হাতে বর্তমানে যেসব যুদ্ধবিমান আছে, সেগুলো সোভিয়েত আমলের। এগুলো বহরে যুক্ত হয় ৩১ বছরের বেশি আগে ইউক্রেন স্বাধীন হওয়ার পূর্বে। এ বিমানগুলো দিয়েই রুশ সেনাদের অবস্থান লক্ষ্য করে হামলা চালায় দেশটি।

আল জাজিরার প্রতিবেদনে জানানো হয়, বৈশ্বিক পরাশক্তি রাশিয়ার সঙ্গে লড়াইয়ের জন্য পশ্চিমা দেশগুলোর সামরিক সহায়তা খুবই গুরুত্বপূর্ণ ইউক্রেনের জন্য। পশ্চিমা দেশগুলোও নানা সহায়তা দিয়ে যাচ্ছে দেশটিকে।

রাশিয়া হামলা চালানোর আগে ইউক্রেনে প্রাণঘাতী অস্ত্র সরবরাহ নিয়েই বিতর্ক ছিল, কিন্তু রুশ হামলা শুরুর পর একে একে নানা ধাপ অতিক্রম করে কিয়েভকে অস্ত্র দিয়ে যাচ্ছে পশ্চিমা দেশগুলো।

আরও পড়ুন:
সবজি চাষে নিরাপদ মানুষের মলমূত্র: গবেষণা
রাশিয়ার ক্ষেপণাস্ত্র হামলায় অন্ধকারে ইউক্রেন
লবণখনির শহর সোলেদার দখলের দাবি রাশিয়ার
যুদ্ধে না যাওয়ায় রুশ সেনার ৫ বছরের কারাদণ্ড
ইউক্রেন যুদ্ধে কমান্ডার পাল্টাল রাশিয়া

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Germany and the United States agree to send tanks to Ukraine
প্রতিবেদন

ইউক্রেনে ট্যাংক পাঠাতে সম্মত জার্মানি, যুক্তরাষ্ট্র

ইউক্রেনে ট্যাংক পাঠাতে সম্মত জার্মানি, যুক্তরাষ্ট্র ইউরোপের অনেক দেশ লেপার্ড ট্যাংক ব্যবহার করে। ছবি: এএফপি
ট্যাংক পাঠাতে জার্মানির সম্মতির খবরের মধ্যে সংবাদমাধ্যমকে একই ধরনের প্রস্তুতির কথা জানিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের কর্মকর্তারা। তাদের ভাষ্য, ইউক্রেনের সম্মুখসারির যোদ্ধাদের কাছে বেশ কিছু এমওয়ান আব্রামস ট্যাংক পাঠানোর প্রক্রিয়া শুরু করতে প্রস্তুত যুক্তরাষ্ট্র।

জার্মানির চ্যান্সেলর ওলাফ শুলজ যুদ্ধে ব্যবহৃত ‘লেপার্ড টু’ ট্যাংক ইউক্রেনে পাঠাতে সম্মত হয়েছেন বলে কিছু সংবাদমাধ্যমের প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে।

সামরিক অভিযানে থাকা রুশ সেনাদের হটাতে ইউক্রেনকে ভারী অস্ত্র দিতে জার্মানির ওপর সপ্তাহ ধরে অব্যাহত চাপের মধ্যে এমন খবর প্রকাশ হলো।

আল জাজিরার প্রতিবেদনে জানানো হয়, ট্যাংক পাঠাতে জার্মানির সম্মতির খবরের মধ্যে সংবাদমাধ্যমকে একই ধরনের প্রস্তুতির কথা জানিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের কর্মকর্তারা। তাদের ভাষ্য, ইউক্রেনের সম্মুখসারির যোদ্ধাদের কাছে বেশ কিছু এমওয়ান আব্রামস ট্যাংক পাঠানোর প্রক্রিয়া শুরু করতে প্রস্তুত যুক্তরাষ্ট্র।

যুক্তরাষ্ট্র সরকারের একটি সূত্র আল জাজিরাকে জানায়, ইউক্রেনে ট্যাংক পাঠানো নিয়ে স্থানীয় সময় বুধবার হোয়াইট হাউস থেকে ঘোষণা আসবে।

সংশ্লিষ্ট একটি সূত্র বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে জানায়, যুক্তরাষ্ট্র আগামী মাসগুলোতে প্রায় ৩০টি আব্রামস ট্যাংক দিতে পারে ইউক্রেনকে।

এর আগে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক জার্মানির সরকারি কর্মকর্তাদের বরাত দিয়ে মঙ্গলবার স্থানীয় একাধিক সংবাদমাধ্যম জানায়, পোল্যান্ড, ফিনল্যান্ডকে তাদের হাতে থাকা ট্যাংক ইউক্রেনে পাঠানোর অনুমোদন দিয়েছে জার্মানি।

বিদ্যমান বিধান অনুযায়ী, জার্মানি থেকে কেনা সামরিক সরঞ্জাম অন্য কোনো দেশের কাছে বিক্রির আগে বার্লিনের অনুমতি নিতে হয়।

আরও পড়ুন:
রাশিয়ার ক্ষেপণাস্ত্র হামলায় অন্ধকারে ইউক্রেন
লবণখনির শহর সোলেদার দখলের দাবি রাশিয়ার
যুদ্ধে না যাওয়ায় রুশ সেনার ৫ বছরের কারাদণ্ড
ইউক্রেন যুদ্ধে কমান্ডার পাল্টাল রাশিয়া
৬ শতাধিক সেনা হত্যার দাবি রাশিয়ার, নাকচ ইউক্রেনের

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Koran burned in anti Turkey protest in Sweden

সুইডেনে তুরস্কবিরোধী বিক্ষোভে পোড়ানো হলো কোরআন

সুইডেনে তুরস্কবিরোধী বিক্ষোভে পোড়ানো হলো কোরআন সুইডেনের স্টকহোমে শনিবার বিক্ষোভের সময় তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়েপ এরদোয়ানের ছবি সংবলিত ব্যানারের ওপর লাফ দেন এক অংশগ্রহণকারী। ছবি: এএফপি
তুরস্কের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বিবৃতিতে বলা হয়, ‘আমাদের পবিত্র ধর্মগ্রন্থের ওপর জঘন্য হামলার তীব্র প্রতিবাদ জানাই…মতপ্রকাশের স্বাধীনতার নামে মুসলিমদের লক্ষ্যবস্তু বানানোর পাশাপাশি আমাদের পবিত্র মূল্যবোধকে অপমানকারী এ ধরনের ইসলামবিরোধী কর্মকাণ্ডের অনুমোদন দেয়াটা সম্পূর্ণভাবে অগ্রহণযোগ্য।’

সুইডেনের রাজধানী স্টকহোমে শনিবার তুরস্কবিরোধী বিক্ষোভে পবিত্র কোরআন পুড়িয়েছেন কট্টর ডানপন্থি এক রাজনীতিক।

এ ঘটনায় তীব্র প্রতিবাদ জানিয়েছে তুরস্কসহ মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ বিভিন্ন দেশ।

বার্তা সংস্থা রয়টার্সের প্রতিবেদনে জানানো হয়, তুরস্কবিরোধী বিক্ষোভের দিনে ন্যাটোতে সুইডেনের যোগদানের চেষ্টার বিরুদ্ধেও বিক্ষোভ হয়েছে।

এতে বলা হয়, সামরিক জোটে প্রবেশের জন্য যখন তুরস্কের সমর্থন দরকার সুইডেনের, সে সময়ে কোরআন পোড়ানোর ঘটনায় দুই দেশের মধ্যে উত্তেজনা চরম পর্যায়ে পৌঁছেছে।

তুরস্কের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বিবৃতিতে বলা হয়, ‘আমাদের পবিত্র ধর্মগ্রন্থের ওপর জঘন্য হামলার তীব্র প্রতিবাদ জানাই…মতপ্রকাশের স্বাধীনতার নামে মুসলিমদের লক্ষ্যবস্তু বানানোর পাশাপাশি আমাদের পবিত্র মূল্যবোধকে অপমানকারী এ ধরনের ইসলামবিরোধী কর্মকাণ্ডের অনুমোদন দেয়াটা সম্পূর্ণভাবে অগ্রহণযোগ্য।’

স্টকহোমে তুরস্কের দূতাবাসের কাছে কট্টর ডানপন্থি অভিবাসীবিরোধী এক রাজনীতিক কোরআন পোড়ানোর পর ওই বিবৃতি দেয় আঙ্কারা। তুরস্কের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ওই ঘটনায় জড়িতদের বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা নিতে সুইডেনের প্রতি তাগিদ দেয়ার পাশাপাশি ইসলামভীতির বিরুদ্ধে দৃশ্যমান ব্যবস্থা নিতে সব দেশের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে।

সুইডেনের রাজধানীতে একই দিনে তিনটি প্রতিবাদ কর্মসূচি হয়েছে, যার একটি ছিল কুর্দিদের প্রতি সমর্থন এবং ন্যাটোতে সুইডেনের যোগদান চেষ্টার বিরুদ্ধে বিক্ষোভ। অন্যদিকে তুরস্কপন্থি বিক্ষোভকারীরা দূতাবাসের বাইরে সমাবেশ করেছে। তিন কর্মসূচিতেই অনুমোদন ছিল পুলিশের।

সুইডেনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী টোবিয়াস বিলস্ট্রম বলেন, ইসলামভীতিপূর্ণ উসকানির বিষয়টি ভয়ানক।

এক টুইটবার্তায় তিনি বলেন, ‘সুইডেনে মতপ্রকাশের স্বাধীনতার পরিধি ব্যাপক, তবে এর অর্থ এই নয় যে, সুইডেনের সরকার কিংবা আমি এমন মতপ্রকাশকে সমর্থন করি।’

ডেনমার্কের কট্টর ডানপন্থি রাজনৈতিক দল হার্ডলাইনের নেতা রাসমুস প্যালুদেন কোরআন পুড়িয়েছেন। অতীতের বেশ কিছু বিক্ষোভে কোরআন পোড়ানোর নজির আছে সুইডেনের নাগরিকত্ব পাওয়া এ রাজনীতিকের।

এ বিষয়ে জানতে ইমেইলে যোগাযোগ করে কোনো মন্তব্য পাওয়া যায়নি প্যালুদেনের।

এদিকে এ ঘটনার প্রতিবাদ জানিয়েছে সৌদি আরব, জর্ডান, কুয়েতসহ মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ বেশ কয়েকটি দেশে।

সৌদির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বিবৃতিতে বলা হয়, ‘সৌদি আরব সংলাপ, সহিষ্ণুতা ও সহাবস্থানের মূল্যবোধ ছড়িয়ে দেয়ার আহ্বান জানানোর পাশাপাশি ঘৃণা ও চরমপন্থাকে প্রত্যাখ্যান করে।’

আরও পড়ুন:
বাংলাদেশের সবুজ ও নবায়নযোগ্য জ্বালানিতে আগ্রহ সুইডেনের
নাটক জমিয়ে ফিরে এলেন সুইডেনের প্রথম নারী প্রধানমন্ত্রী
দায়িত্ব নিয়েই পদত্যাগ করলেন সুইডেনের প্রথম নারী প্রধানমন্ত্রী
প্রথম নারী প্রধানমন্ত্রী পেতে যাচ্ছে সুইডেন

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Seatbelt The Prime Minister of the United Kingdom could not even apologize

সিটবেল্ট: দুঃখ প্রকাশ করেও পার পেলেন না যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী

সিটবেল্ট: দুঃখ প্রকাশ করেও পার পেলেন না যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী সিটবেল্ট না পরে গাড়ি চালিয়ে জরিমানায় পড়েছেন যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী ঋষি সুনাক। ছবি: সংগৃহীত
যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের বরাত দিয়ে বিবিসির প্রতিবেদনে জানানো হয়, সিটবেল্ট না পরা যে ভুল ছিল, তা সম্পূর্ণভাবে স্বীকার করে দুঃখ প্রকাশ করেছেন ঋষি সুনাক, যিনি জরিমানার অর্থ পরিশোধ করবেন।

চলন্ত গাড়িতে সিটবেল্ট না পরে ভিডিও ধারণের ঘটনায় জরিমানা গুনতে হচ্ছে যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী ঋষি সুনাককে।

দেশটির ল্যাঙ্কাশায়ার পুলিশ শুক্রবার নোটিশে জানিয়েছে, লন্ডনের ৪২ বছর বয়সী এক ব্যক্তিকে (ঋষি সুনাক) নির্দিষ্ট অর্থ পরিশোধের বিনিময়ে বিচার এড়ানোর প্রস্তাব দেয়া হয়েছে।

যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের বরাত দিয়ে বিবিসির প্রতিবেদনে জানানো হয়, সিটবেল্ট না পরা যে ভুল ছিল, তা সম্পূর্ণভাবে স্বীকার করে দুঃখ প্রকাশ করেছেন ঋষি সুনাক, যিনি জরিমানার অর্থ পরিশোধ করবেন।

যুক্তরাজ্যে গাড়িতে সিটবেল্ট থাকার পরও না পরলে যাত্রীকে ১০০ পাউন্ড জরিমানা করা হতে পারে। বিষয়টি আদালত পর্যন্ত গড়ালে জরিমানার অর্থ হতে পারে ৫০০ পাউন্ড পর্যন্ত।

পুলিশের নোটিশ পাওয়ার ২৮ দিনের মধ্যে জরিমানার অর্থ পরিশোধ কিংবা সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে আবেদন করতে হয়।

ইংল্যান্ডের উত্তরাঞ্চলে সফরের সময় ল্যাঙ্কাশায়ারে সিটবেল্ট ছাড়া ভিডিওটি ধারণ করেছিলেন যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী।

জনকল্যাণে সরকারের সর্বশেষ ব্যয়বৃদ্ধি নিয়ে করা ওই ভিডিও ঋষি সুনাকের ইনস্টাগ্রাম অ্যাকাউন্টে পোস্ট করা হয়েছিল।

সরকারের গুরুত্বপূর্ণ পদে থেকে নিয়ম ভঙ্গ করে এক বছরের মধ্যে দুইবার জরিমানার শিকার হয়েছেন ঋষি সুনাক।

করোনাভাইরাস মহামারির মধ্যে ২০২০ সালের জুনে তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনের জন্মদিন উপলক্ষে জমায়েতে অংশ নেয়ায় ২০২২ সালের এপ্রিলে জরিমানা গুনতে হয় ঋষি সুনাককে। ওই ঘটনায় বরিস ও তার স্ত্রী ক্যারিকেও জরিমানা দিতে হয়।

আরও পড়ুন:
উত্তাল ব্রিটেনে সেনা মোতায়েনের পরিকল্পনা
যুক্তরাজ্যের ১০০ কোম্পানিতে সাপ্তাহিক ছুটি ৩ দিন
বিশ্বের সবচেয়ে ‘বুড়ো বিড়াল’ ফ্লসি
যুক্তরাজ্যে মন্দার শঙ্কা, বেঁচে যেতে পারে যুক্তরাষ্ট্র
যুক্তরাজ্যে বাংলাদেশি রেস্তোরাঁয় কাজ করতেন ঋষি

মন্তব্য

p
উপরে