× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

আন্তর্জাতিক
I was aware of the assassination plot Imran Khan
hear-news
player
google_news print-icon

পাকিস্তানে সেনা হস্তক্ষেপ চাইলেন ইমরান খান

পাকিস্তানে-সেনা-হস্তক্ষেপ-চাইলেন-ইমরান-খান
জাতির উদ্দেশে ভাষণ দিছেন পাকিস্তানের সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। ছবি: সংগৃহীত
পাকিস্তানের ধ্বংস ঠেকাতে সেনাবাহিনী প্রধান (সিওএএস) জেনারেল কামার জাভেদ বাজওয়াকে পদক্ষেপ নিতে আহ্বান জানিয়ে সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান বলেন ‘আপনি যদি কুলাঙ্গারদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা না নেন তবে জাতি ভেঙ্গে পরতে শুরু করবে।’

পাকিস্তানের ধ্বংস ঠেকাতে সেনাবাহিনী প্রধান (সিওএএস) জেনারেল কামার জাভেদ বাজওয়াকে পদক্ষেপ নিতে আহ্বান জানিয়েছেন দেশটির সাবেক প্রধানমন্ত্রী ও পাকিস্তান তেহরিক-ই-ইসলাম (পিটিআই) প্রধান ইমরান খান। হত্যাচেষ্টার পর শুক্রবার সন্ধ্যায় লাহোরের শওকত খানুম হাসপাতাল থেকে দেয়া প্রথম ভাষণে এ আহ্বান জানান ইমরান।

তিনি বলেন, ‘আপনি (সিওএএস) যদি কুলাঙ্গারদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা না নেন তবে জাতি ভেঙে পড়তে শুরু করবে।’

পিটিআই প্রধান ইমরান খান দাবি করেন, সেনাবাহিনীর সহায়তায় পাকিস্তানকে কেবল তার দল পিটিআই ঐক্যবদ্ধ করতে পারবে।

ইমরান বলেন, ‘সামরিক বাহিনী যদি দেশকে একত্রিত করতে পারত, তবে পূর্ব পাকিস্তান ভেঙে যেত না। শুধু রাজনৈতিক দলগুলো দেশগুলোকে ঐক্যবদ্ধ করে, সেনাবাহিনী তাদের সহায়তা করে। আমরা ইতিহাস থেকে শিক্ষা নিইনি।’

পাঞ্জাব প্রদেশের ওয়াজিরাবাদে আগাম নির্বাচনের দাবিতে আয়োজিত ইসলামাবাদ অভিমুখী লং মার্চে বৃহস্পতিবার ইমরান খানের ওপর বন্দুক হামলা হয়। তার পায়ে গুলি লাগলেও, তা অপসারণ করা হয়েছে। তিনি এখন শঙ্কামুক্ত। ভর্তি আছেন লাহোরের শওকত খানুম হাসপাতালে।

হত্যার পরিকল্পনার বিষয়ে আগেই জানতেন বলে দাবি করে ভাষণে পাকিস্তানের সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান বলেন, ‘হামলার আগের দিন জানতে পারি গুজরাটের ওয়াজিরাবাদে তারা আমাকে হত্যা করার পরিকল্পনা করেছে।’

ওই ঘটনার পেছনে যে তিনজনের হাত রয়েছে বলে অভিযোগ তুলেছেন, তাদের পদত্যাগ দাবি করেন ইমরান।

তিনি বলেন, ‘একটি জাতি ন্যায়বিচার না পাওয়া পর্যন্ত স্বাধীন হয় না। হামলায় জড়িত তিন জনেরই পদত্যাগ করা উচিত। অন্যথায়, তদন্ত এগুবে না।’

এক পর্যায়ে পাকিস্তানের প্রধান বিচারপতি উমর আতা বন্দিয়ালকে উদ্দেশ্য করে ইমরান বলেন, ‘দেশের সবচেয়ে বড় রাজনৈতিক দলের নেতা ‘ন্যায়বিচার পাচ্ছেন না’। গত ছয় মাসে আমার সঙ্গে যা হয়েছে, তা কখনও শত্রুর সঙ্গে কোনো রাষ্ট্র করেনি।

‘আমি সর্বোচ্চ বেসামরিক পুরস্কার জিতেছি। ক্রিকেটে পাকিস্তানের সম্মান বাড়িয়েছি। শওকত খানম হাসপাতাল আন্তর্জাতিকভাবে বিখ্যাত। দুটি বিশ্ববিদ্যালয় করেছি। তারপর দেশের সবচেয়ে বড় রাজনৈতিক দল গঠন করেছি।’

অতীতের সরকারের ওপর বিরক্ত হওয়ার কারণেই জনগণ পিটিআইকে ভোট দিয়েছে বলে দাবি করেন ইমরান খান। পিএমএল-এন এবং পিপিপিকে কটাক্ষ করে ইমরান বলেন, ‘দুই দল ব্যাপক দুর্নীতি করে দেশের ঋণ বাড়িয়েছে।’

‘জনগণ আমাকে ভোট দিয়েছে কারণ তারা ওদের ওপর বিরক্ত ছিল। কিন্তু কমিশন এখন বলছে, পরিবর্তনের সময় এসেছে। তাদের ফিরিয়ে আনা হবে।’

গত ছয় মাসের ঘটনা স্মরণ করে ইমরান বলেন, ‘কোনো সরকারই আস্থা ভোটে পরাজিত হয় না। কারণ সরকারের কাছে অর্থ থাকে।

‘এমনটা হয়েছে কারণ আমেরিকার কূটনীতিক ডোনাল্ড লু আমাদের রাষ্ট্রদূতকে হুমকি দিয়েছিলেন। তাকে বলা হয়েছিল, ইমরান খানকে সরিয়ে না দিলে পাকিস্তান সমস্যায় পড়বে। তারপর অর্থের বিনিময়ে আমাদের আইনপ্রণেতাদের আনুগত্য কিনে নেয়া হয়।

‘ক্ষমতাসীন পিটিআই এসব দর কষাকষিতে না জড়ানোর নীতিগত সিদ্ধান্ত নিয়েছিল। কারণ এটার অর্থ জাতি এবং জনগণের অর্থ চুরি করা। তারপর সরকারকে ক্ষমতাচ্যুত করা হয়। অনেকেই ভেবেছিলেন ইমরান শেষ হয়ে গেছে, আর ফিরতে পারবে না। তবে পাকিস্তানিরা এমন এক জাতি, যারা অসম্ভবকে সম্ভব করে।’

পিপিপি এবং পিএমএল-এনের মতো নিজের দল কোনো প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে তৈরি হয়নি জানিয়েছে ইমরান দাবি করেন, জনগণের সমর্থনে তার দল ক্ষমতায় এসেছিল।

পিটিআই প্রধান বলেন, ‘জনগণ যেভাবে আমাকে সমর্থন করেছিল, আমি অবাক হয়েছিলাম। আমরা ২৫ মে লং মার্চ ঘোষণা করি। আমার মেয়াদে তারা তিনটি লং মার্চ করেছে। এটা করতে পেরেছে কারণ আমরা আইন ও সংবিধানে বিশ্বাস করি।

‘আমরা ভেবেছিলাম তারা আমাদের অনুমতি দেবে। কারণ আমরা তাদের অনুমতি দিয়েছিলাম। কিন্তু এর পরিবর্তে আমাদের নেতাকর্মীরা সহিংসতার শিকার হচ্ছে।’

সরকারি সংস্থাগুলো গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়াকে বাধা দিচ্ছে বলে অভিযোগ করেন ইমরান। তিনি বলেন, ‘জুলাইয়ে উপনির্বাচনের সময় সবগুলো রাষ্ট্রযন্ত্র ব্যবহার হয়েছিল, ব্যাপক কারচুপি হয়েছিল। তারপরও পিটিআই নির্বাচনে জয়লাভ করে।

‘এরপর শুরু হয় হুমকি-ধমকি। ইসলামাবাদ থেকে মেজর জেনারেল ফরসাল নামে একজন এসেছিলেন। পিটিআইকে কীভাবে সোজা করা যায়, সেটি তিনি দেখবেন বলে শাসান।

‘পিটিআইপন্থী মিডিয়া এবং সাংবাদিকদের ওপর কড়াকড়ি আরোপ হয়। আমাকে ছেড়ে যেতে এমপিদের ভয় দেখানো হয়। তাদের ব্ল্যাকমেইল করা হয়।’

তোশাখানা রেফারেন্সে অযোগ্য ঘোষণা করতে পাকিস্তানের নির্বাচন কমিশনকে (ইসিপি) ‘ব্যবহার’ করা হয়েছে বলে অভিযোগ করেন ইমরান খান। তিনি বলেন, ‘তোশাখানার পুরো রেকর্ড তোশাখানার কাছে আছে। এখানে চুরির কোনো সুযোগ নেই। তারপরও আমাকে অযোগ্য করে দিয়েছে। তারা আমাকে এমন একজনের সঙ্গে তুলনা করছে, যার বিদেশে কোটি কোটি টাকার সম্পদ আছে।’

প্রধান নির্বাচন কমিশনার সিকান্দার সুলতান রাজাকে ‘শরিফ পরিবারের সেবক’ দাবি করে ইমরান বলেন, ‘ইসিপির সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে আমরা আদালতে যাব।’

২৩ অক্টোবর কেনিয়ায় পুলিশের গুলিতে নিহত হন পাকিস্তানের অনুসন্ধানী সাংবাদিক আরশাদ শরীফ। তার প্রসঙ্গ টেনে ইমরান বলেন, ‘আরশাদ শরীফের সঙ্গে যা হয়েছে, জাতি কখনই তা ভুলবে না।

‘সাংবাদিকরা এবং আরশাদের পরিবার জানে কেন তাকে দুবাই আশ্রয় নিতে হয়েছিল। কারণ তাকে কেনা যায়নি, ভয় দেখিয়েও কাজ হয়নি। তার শাহাদাৎ পাকিস্তানের অন্যতম মর্মান্তিক ঘটনা।’

পিটিআই চেয়ারম্যান ইমরান খান দাবি করেছেন, তাকে হত্যার ষড়যন্ত্র করেছিল চারজন।

তিনি বলেন, ‘আমি একটি ভিডিও তৈরি করেছি। সেখানে তাদের নাম দিয়েছি। ভিডিওটি বিদেশে লুকিয়ে রেখেছি, কিছু হলে এটি প্রকাশ করা হবে। ক্ষমতায় থাকা অবস্থায় এই চক্রান্তের তথ্য পেয়েছিলাম।’

ভাষণের শেষে পিটিআই প্রধান ইমরান খান সুস্থ হয়ে ফের রাস্তায় নামার প্রতিশ্রুতি দেন। তিনি বলেন, ‘সুস্থ হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে রাস্তায় নামার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। ইসলামাবাদমুখী লং মার্চের ডাক দেব। আপনারা স্বাধীনতার সঙ্গে আপস করবেন না। কারণ ক্রীতদাস জাতিকে বিশ্বে সম্মান দেয়া হয় না। তারা কখনো উন্নতি করতে পারে না।’

আরও পড়ুন:
ইমরানের ওপর হামলার নিন্দা ক্রিকেটারদের
ইমরানের সাবেক ব্রিটিশ বধূর স্বস্তি
দলের কর্মীরাই বাঁচালেন ইমরানের প্রাণ
গুলিবিদ্ধ ইমরান, পাকিস্তানজুড়ে প্রবল বিক্ষোভ
হামলায় যে ৩ জনকে সন্দেহ করছেন ইমরান খান

মন্তব্য

আরও পড়ুন

আন্তর্জাতিক
Tanmay stuck in the well for more than 16 hours

১৬ ঘণ্টা কুয়ায় আটকে তন্ময়

১৬ ঘণ্টা কুয়ায় আটকে তন্ময় বন্ধুদের সঙ্গে খেলার সময় মঙ্গলবার সন্ধ্যায় ওই কুয়ায় পড়ে যায় তন্ময় সাহু। ছবি কোলাজ: নিউজবাংলা
তন্ময়কে উদ্ধারে জোর চেষ্টা চালাচ্ছেন দমকলকর্মীরা। তারা বলছেন, কুয়াটি ৪০০ ফুট গভীর। তন্ময় আনুমানিক ৫৫ ফুট গভীরে আটকে আছে। অক্সিজেন পাম্প করে তাকে বাঁচিয়ে রাখা হয়েছে। তবে কাদার কারণে তন্ময়ের প্রকৃত অবস্থা বোঝা যাচ্ছে না।

১৬ ঘণ্টারও বেশি সময় একটি সরু কুয়ায় আটকে আছে ৮ বছরের ছেলেটি। বন্ধুদের সঙ্গে খেলার সময় মঙ্গলবার সন্ধ্যায় ওই কুয়ায় পড়ে যায় তন্ময় সাহু।

ভারতের মধ্যপ্রদেশ রাজ্যে এ ঘটনা ঘটেছে

তন্ময়কে উদ্ধারে জোর চেষ্টা চালাচ্ছেন দমকলকর্মীরা। তারা বলছেন, কুয়াটি ৪০০ ফুট গভীর। তন্ময় আনুমানিক ৫৫ ফুট গভীরে আটকে আছে। অক্সিজেন পাম্প করে তাকে বাঁচিয়ে রাখা হয়েছে। তবে কাদার কারণে তন্ময়ের প্রকৃত অবস্থা বোঝা যাচ্ছে না।

বেতুল জেলায় উদ্ধার অভিযানে সহায়তা করছেন রাজ্যের ডিজাস্টার রেসপন্স ফোর্সেস। জেলা ম্যাজিস্ট্রেট শ্যামেন্দ্র জয়সওয়াল জানিয়েছেন, শিশুটিকে উদ্ধার করতে ‘আরও কয়েক ঘণ্টা ’ লাগতে পারে।

‘ধারণার চেয়েও বেশি সময় নিচ্ছে। কূপের ভেতরে অনেক পাথর রয়েছে। এ কারণেই দেরি হচ্ছে। উদ্ধারকারীরা পথটি যন্ত্রের মাধ্যমে পরিষ্কার করছে।’

মধ্যপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী শিবরাজ সিং চৌহান জানান, এ ঘটনায় স্থানীয় প্রশাসনের সঙ্গে যোগাযোগ করছেন তিনি। মন্ত্রী শিশুর সুস্থতার জন্য প্রার্থনা করছেন।

ভারতে সেচের পানির সংকট মেটাতে ‘গভীর কুয়া’ স্থাপন করে থাকেন কৃষকরা। কূপগুলো শুকিয়ে গেলে সেগুলো পরিত্যক্ত অবস্থায় ফেলে রাখা হয়; যা পথচারীদের বিশেষ করে শিশুদের জন্য মারাত্মক ঝুঁকি সৃষ্টি করে।

আরও পড়ুন:
ভারতের বিপক্ষে টস জিতে ফিল্ডিংয়ে বাংলাদেশ
বাঙালি নিয়ে মন্তব্যে পরেশ রাওয়ালের বিরুদ্ধে মামলা
দুই বাংলার মিলনমেলায় বিএসএফের লাঠি
ভারতের সঙ্গে যৌথ মহড়ায় চীনকে চুপ থাকার আহ্বান যুক্তরাষ্ট্রের
সাত বছর পর ঢাকায় রোহিত-কোহলিরা

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Woman alive after 7 years of murder

‘খুনের শিকার’ কিশোরী নারী হয়ে ফিরলেন ৭ বছর পর

‘খুনের শিকার’ কিশোরী নারী হয়ে ফিরলেন ৭ বছর পর আদালতে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে সাত বছর ফিরে আসা নারীকে। ছবি: সংগৃহীত
২০১৫ সালে আলিগড় থেকে ১৪ বছর বয়সে নিখোঁজ হয়ে গিয়েছিলেন ওই নারী। পরে একটি দেহ পাওয়া গেলে তার বাবা সেটিকে নিজের মেয়ের বলে শনাক্ত করেন। এরপর প্রতিবেশী শ্রমিকের বিরুদ্ধে মেয়েকে অপহরণ ও খুনের অভিযোগ করেন তিনি। বিচারে জেলও হয় ওই শ্রমিকের।

ভারতের উত্তর প্রদেশের হাথরাসে ২০১৫ সালে কিশোরীকে খুনের দায়ে কারাদণ্ড হয়েছিল এক ব্যক্তির। এখনও জেলে আছেন দণ্ডপ্রাপ্ত ব্যক্তি। অথচ যাকে খুনের জন্য তিনি জেলে গিয়েছিলেন, সেই কিশোরীকে সম্প্রতি জীবিত অবস্থায় পেয়েছে পুলিশ।

শুধু তা-ই নয়, প্রায় এক দশক আগে নিখোঁজ হওয়া মেয়েটি স্বামী ও দুই সন্তান নিয়ে রীতিমতো সংসার করছেন।

স্থানীয় পুলিশের বরাত দিয়ে গালফ নিউজের প্রতিবেদনে জানানো হয়, ২০১৫ সালে আলিগড় থেকে ১৪ বছর বয়সে নিখোঁজ হয়ে গিয়েছিলেন ওই নারী। পরে একটি দেহ পাওয়া গেলে তার বাবা সেটিকে নিজের মেয়ের বলে শনাক্ত করেন। এরপর প্রতিবেশী শ্রমিকের বিরুদ্ধে মেয়েকে অপহরণ ও খুনের অভিযোগ করেন তিনি। বিচারে জেলও হয় ওই শ্রমিকের।

সম্প্রতি অভিযুক্তের পরিবার আলিগড় পুলিশকে জানায়, ওই নারী জীবিত রয়েছেন। হাথরাসে বিয়ে করে সংসার করছেন।

এরপরই পুলিশ হাথরাসে অভিযান চালিয়ে নিখোঁজ হয়ে যাওয়া নারীকে আলিগড়ে নিয়ে আসে। তার ডিএনএ টেস্ট করা হবে। একই সঙ্গে এ ঘটনার পুনর্তদন্ত শুরু করা হবে।

জেলে থাকা অভিযুক্তের মা বলেন, ‘আমি সবসময় বিশ্বাস করতাম, আমার ছেলেকে মিথ্যা মামলায় ফাঁসানো হয়েছে। আমি পরিচিত সবাইকে জিজ্ঞাসা করেছি, তারা কোথাও হারিয়ে যাওয়া মেয়েটিকে দেখেছে কি না।

‘কেউ কেউ আমার কথা ভালোভাবে নিয়েছে; কেউ কেউ নেয়নি। এ ঘটনার পর আশা করি আমার ছেলে শিগগিরই মুক্তি পাবে।’

উত্তর প্রদেশের পুলিশ কর্মকর্তা রাঘবেন্দর সিং বলেন, ‘মেয়েটিকে স্থানীয় আদালতে হাজির করা হয়েছে। আদালতের অনুমতি পাওয়ার পর আমরা তার পরিচয় নিশ্চিত করতে ডিএনএ টেস্টের প্রক্রিয়া শুরু করেছি। প্রতিবেদনের ভিত্তিতে পরবর্তী ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Imran Khan is losing party positions

দলীয় পদ হারাতে পারেন ইমরান

দলীয় পদ হারাতে পারেন ইমরান পাকিস্তানের সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। ছবি: সংগৃহীত
দলীয় পদ থেকে সরে যাওয়া নিয়ে ইমরান খানের উদ্দেশে নোটিশ জারি করা হয়েছে। আদালতে এ-সংক্রান্ত মামলার শুনানি হবে ১৩ ডিসেম্বর।

দলীয় পদ থেকে পাকিস্তানের সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানকে সরাতে কার্যক্রম শুরু করেছে দেশটির নির্বাচন কমিশন।

তোশাখানা মামলায় অযোগ্য হওয়ার পর মঙ্গলবার তার বিরুদ্ধে এ কার্যক্রম শুরু হয়।

পাকিস্তানভিত্তিক সংবাদমাধ্যম ডনের প্রতিবেদনে বলা হয়, দলীয় পদ থেকে সরে যাওয়া নিয়ে ইমরানের উদ্দেশে নোটিশ জারি করা হয়েছে। আদালতে এ-সংক্রান্ত মামলার শুনানি হবে ১৩ ডিসেম্বর।

রাষ্ট্রীয় উপহার বিক্রির তথ্য গোপন করায় এরই মধ্যে পাকিস্তানের সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের পার্লামেন্ট সদস্যপদ খারিজ করা হয়েছে। তাকে নির্বাচনের অযোগ্য ঘোষণা করেছে দেশটির নির্বাচন কমিশন (ইসিপি)।

ইমরান তোশাখানায় থাকা উপহার ও এগুলো বিক্রি থেকে আয়ের বিবরণ বিস্তারিতভাবে দেননি বলে আগস্টে অভিযোগ করে প্রধানমন্ত্রী শাহবাজ শরিফের নেতৃত্বাধীন সরকার। পরবর্তী পদক্ষেপের জন্য সরকারের পক্ষ থেকে প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) সিকান্দার সুলতান রাজার কাছে চিঠি পাঠানো হয়।

সেপ্টেম্বরে নির্বাচন কমিশনে জমা দেয়া লিখিত জবাবে ইমরান প্রধানমন্ত্রী থাকাকালীন পাওয়া উপহারের কমপক্ষে চারটি বিক্রির কথা স্বীকার করেছিলেন।

১৯৭৪ সালে প্রতিষ্ঠিত পাকিস্তানের তোশাখানা মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের প্রশাসনিক নিয়ন্ত্রণাধীন একটি বিভাগ। এতে বিভিন্ন দেশের সরকার ও রাজ্যের প্রধান এবং বিদেশি বিশিষ্ট ব্যক্তি, শাসক, সংসদ সদস্য, আমলা ও কর্মকর্তাদের দেয়া মূল্যবান উপহার সংরক্ষণ করা হয়।

তোশাখানার নিয়ম অনুযায়ী, প্রাপ্ত উপহার ও এ জাতীয় অন্যান্য উপকরণের বিষয়ে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগে প্রতিবেদন জমা দিতে হয়।

২০১৮ সালে দায়িত্ব নেয়ার পর থেকে উপহারের বিবরণ প্রকাশ করতে রাজি ছিল না ইমরানের নেতৃত্বাধীন পাকিস্তান তেহরিক-ই-ইনসাফ (পিটিআই) সরকার।

পাকিস্তানের সাবেক ক্রিকেটার ইমরান খান ২০১৮ সালে দেশটির প্রধানমন্ত্রী হন। চলতি বছরের এপ্রিলে পার্লামেন্টে আস্থা ভোটে ক্ষমতা হারান তিনি।

দক্ষিণ এশিয়ার দেশটির ইতিহাসে আস্থা ভোটে ক্ষমতা হারানো একমাত্র প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান।

আরও পড়ুন:
‘সেনাপ্রধান নিয়োগের পর ইমরানকে দেখে নেব’
পাকিস্তানে পুলিশ টহল দলের ওপর গুলিতে নিহত ৬
ফাইনাল পরিত্যক্ত হলে যেভাবে হবে শিরোপা নির্ধারণ
ইমরান পরিবারের নিরাপত্তায় কমান্ডো
পাকিস্তানকে ১৫৩ রানের টার্গেট দিয়েছে নিউজিল্যান্ড

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
After killing his brother he cut off his head and took a selfie

ভাইয়ের কাটা মাথা নিয়ে বন্ধুদের সঙ্গে সেলফি

ভাইয়ের কাটা মাথা নিয়ে বন্ধুদের সঙ্গে সেলফি প্রতীকী ছবি
পুলিশ জানায়, কানুকে হত্যার পর তার কাটা মাথার সঙ্গে সেলফি তোলেন অভিযুক্তরা। তাদের কাছ থেকে পাঁচটি মোবাইল ফোন, দুটি ধারালো অস্ত্র ও একটি গাড়ি উদ্ধার করা হয়েছে।

জমি নিয়ে বিরোধের জেরে চাচাতো ভাইয়ের মাথা কেটে নেন এক যুবক। বিচ্ছিন্ন সেই মাথা নিয়ে সেলফি তোলেন ওই যুবক ও তার কয়েকজন বন্ধু।

ভারতের ঝাড়খণ্ডের খুন্তি জেলার মুরহু এলাকায় সম্প্রতি এ ঘটনা ঘটে।

স্থানীয় পুলিশের বরাত দিয়ে সোমবার এনডিটিভির প্রতিবেদনে জানানো হয়, নিহত কানু মুন্ডা মুরহু এলাকার দাসাই মুন্ডার ছেলে। এ ঘটনায় অভিযুক্ত তার চাচাতো ভাই সাগর মুন্ডাকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

দাসাই মুন্ডা জানান, বৃহস্পতিবার বাড়ির সবাই মাঠে কাজ করতে গিয়েছিলেন। কানু একাই বাড়িতে ছিলেন। ফিরে এসে তিনি দেখেন, কানু বাড়িতে নেই।

তার ভাষ্য, প্রতিবেশীরা তাকে জানান, ভাইপো সাগর বন্ধুদের নিয়ে কানুকে বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে যায়। অনেক খুঁজেও ছেলেকে না পেয়ে শুক্রবার থানায় অভিযোগ করেন তিনি।

সে অভিযোগের ভিত্তিতে তদন্ত শুরু করেন ঝাড়খণ্ডের পুলিশ কর্মকর্তা অমিত কুমার। এর একপর্যায়ে অভিযুক্ত সাগর ও তার স্ত্রীসহ ছয়জনকে গ্রেপ্তার করা হয়। তাদের স্বীকারোক্তি অনুযায়ী জঙ্গল থেকে কানুর মরদেহ উদ্ধার করা হয়। আর ঘটনাস্থল থেকে ১৫ কিলোমিটার দূরে কানুর মাথা পাওয়া যায়।

পুলিশ জানায়, কানুকে হত্যার পর তার কাটা মাথার সঙ্গে সেলফি তোলেন অভিযুক্তরা। তাদের কাছ থেকে পাঁচটি মোবাইল ফোন, দুটি ধারালো অস্ত্র ও একটি গাড়ি উদ্ধার করা হয়েছে।

ঝাড়খণ্ডের পুলিশ কর্মকর্তা অমিত কুমার বলেন, এক খণ্ড জমি নিয়ে দুই পরিবারের মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলছিল। এর জেরে সাগর মুন্ডা তার চাচাতো ভাইকে হত্যা করেন।

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Roadside bomb blast kills 7 in Afghanistan

আফগানিস্তানে রাস্তার পাশে বোমায় নিহত ৭

আফগানিস্তানে রাস্তার পাশে বোমায় নিহত ৭ আফগানিস্তানের মাজার-ই-শরিফ শহরে রাস্তার পাশে পুঁতে রাখা বোমা বিস্ফোরণে প্রাণহানি হয়। ছবি: সংগৃহীত
যুক্তরাষ্ট্রের সেনারা আফগানিস্তান ছাড়ার পর গত বছরের ১৫ আগস্ট দেশটির ক্ষমতায় আসে তালেবান। তারা শান্তি প্রতিষ্ঠার প্রতিশ্রুতি দিলেও দৃশ্যত অস্থিতিশীল দক্ষিণ এশিয়ার দেশটি।

আফগানিস্তানের মাজার-ই-শরিফ শহরে রাস্তার পাশে পুঁতে রাখা বোমা বিস্ফোরণে কমপক্ষে সাতজন নিহত হয়েছেন।

মঙ্গলবার ভোরে এ বিস্ফোরণ হয় বলে জানিয়েছেন দেশটির কর্মকর্তারা।

তাদের বরাত দিয়ে আল জাজিরার প্রতিবেদনে জানানো হয়, বিস্ফোরণে নিহতদের মধ্যে একটি পেট্রোলিয়াম কোম্পানির কর্মীরাও রয়েছেন।

কারা এ হামলায় জড়িত, তা নিশ্চিত হওয়া যায়নি।

যুক্তরাষ্ট্রের সেনারা আফগানিস্তান ছাড়ার পর গত বছরের ১৫ আগস্ট দেশটির ক্ষমতায় আসে তালেবান। তারা শান্তি প্রতিষ্ঠার প্রতিশ্রুতি দিলেও দৃশ্যত অস্থিতিশীল দক্ষিণ এশিয়ার দেশটি।

আফগানিস্তানজুড়ে একের পর এক হামলা চলছেই।

চলতি বছরের অক্টোবরে আফগানিস্তানের সামানগান প্রদেশের আয়বাকে একটি স্কুলে বিস্ফোরণের ঘটনায় ১৯ জন নিহত ও ২৪ জন আহত হন। ওই মাসেই দেশটির স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সংলগ্ন একটি মসজিদে হামলায় চারজন নিহত হন।

এর আগে মে মাসে মাজার-ই-শরিফ এলাকায় একাধিক বিস্ফোরণে নয়জন নিহত হন।

এসব হামলার দায় স্বীকার করেছে তালেবানের প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী ইসলামিক স্টেট (আইএস)।

আরও পড়ুন:
কাবুলে পাকিস্তান দূতাবাসে হামলা
আফগানিস্তানের স্কুলে বিস্ফোরণ, নিহত ১০  
কারেনের কারিশমায় ইংল্যান্ডের জয়
আফগানিস্তানকে ১১২ রানে আটকে দিলেন কারেন
দ্বিতীয় ওয়ার্ম আপ ম্যাচ খেলা হলো না বাংলাদেশের

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
Young man in legal trouble for marrying 2 twin sisters at the same time

যমজ বোনকে বিয়ে নিয়ে আইনি ঝামেলা

যমজ বোনকে বিয়ে নিয়ে আইনি ঝামেলা এক সঙ্গে দুই জমজ বোনকে বিয়ে করেছেন ভারতের এক যুবক। ছবি: সংগৃহীত
মহারাষ্ট্রের সোলাপুর জেলার মালশিরাস তহসিলে শুক্রবার বিয়ের পিঁড়িতে বসেন ওই তিনজন। পাত্রী দুই বোন একই প্রতিষ্ঠানের প্রযুক্তি কর্মী। ৩৬ বছর বয়সী পাত্রের বিস্তারিত পরিচয় পাওয়া যায়নি।

একসঙ্গে যমজ বোনকে বিয়ে করে আলোচনার জন্ম দিয়েছেন ভারতের মুম্বাইয়ের এক যুবক।

সম্প্রতি ঘটা এ ঘটনার ভিডিও ছড়িয়ে পড়ার পর তার বিরুদ্ধে থানায় একটি অভিযোগ দেয়া হয়েছে বলে এনডিটিভির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে।

মহারাষ্ট্রের সোলাপুর জেলার মালশিরাস তহসিলে শুক্রবার বিয়ের পিঁড়িতে বসেন ওই তিনজন। পাত্রী দুই বোন একই প্রতিষ্ঠানের প্রযুক্তি কর্মী। ৩৬ বছর বয়সী পাত্রের বিস্তারিত পরিচয় পাওয়া যায়নি।

আকলুজ থানার পুলিশ জানিয়েছে, স্বামী বা স্ত্রী থাকার পরও আরেকটি বিয়ে অর্থাৎ ভারতীয় পেনাল কোডের ৪৯৪ ধারায় অভিযোগ এসেছে পাত্রের বিরুদ্ধে। বিষয়টি তদন্ত করা হচ্ছে।

পুলিশ বলছে, কয়েক দিন আগেই ওই দুই বোনের বাবা মারা যান। মায়ের সঙ্গেই থাকছেন তারা। বিয়ে হয়েছে দুই পরিবারের সম্মতিতে।

ভারতে অবশ্য এ ঘটনা এটিই প্রথম নয়। গত বছরের মে মাসে উভয় পরিবারের সম্মতি এবং উপস্থিতিতে এক দিনে এক বিয়ের মঞ্চেই দুই বোনকে বিয়ে করার ঘটনায় এক যুবককে গ্রেপ্তার করেছিল কর্নাটক রাজ্যের কোলার জেলার পুলিশ।

হিন্দু বিবাহ আইনের বরাত দিয়ে তখন পুলিশ জানায়, আইন অনুযায়ী দ্বিতীয় বিয়ের আগে প্রথম স্ত্রীর সঙ্গে বিয়েবিচ্ছেদ বাধ্যতামূলক। তাই নিয়ম ভাঙার অপরাধে দুই বোনের স্বামীকে গ্রেপ্তার করা হয়।

আরও পড়ুন:
সংঘর্ষে প্রাণ গেল কনের দাদির, বরসহ আটক ১২
মানসিক হাসপাতালে পরিচয়-প্রেম, এরপর বিয়ে
বান্ধবীর সংসার জোড়া লাগাতে গিয়ে সতিন

মন্তব্য

আন্তর্জাতিক
3 astronauts landed in China after spending six months in space

ছয় মাস মহাকাশে কাটিয়ে চীনে নামলেন ৩ নভোচারী

ছয় মাস মহাকাশে কাটিয়ে চীনে নামলেন ৩ নভোচারী চীনে ফিরলেন তিন নভোচারী। ছবি: বিবিসি
চীনের প্রথম নারী মহাকাশচারী লিউ ইয়াং বলেছেন, মহাকাশ স্টেশনে আমার অবিস্মরণীয় স্মৃতি রয়েছে। মাতৃভূমিতে ফিরে আসতে পেরে আমি উচ্ছ্বসিত।

চীনের মহাকাশ স্টেশনে ছয় মাসের অভিযান শেষে ফিরলেন তিন নভোচারী।

পৃথিবী থেকে প্রায় ৩৮০ কিলোমিটার উচ্চতায় মহাকাশ স্টেশন তিয়ানহ থেকে স্থানীয় সময় রোববার তারা চীনের মাটিতে নামেন বলে এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে বিবিসি

গত ৫ জুন মহাকাশ স্টেশনটির নির্মাণসহ নানা বিষয় পর্যবেক্ষণে যান এই নভোচারীরা। অভিযান শেষে মহাকাশযান শেনঝৌতে চীনের স্বায়ত্তশাসিত অঞ্চল ইনার মঙ্গোলিয়ায় পৌঁছান তারা।

নভেম্বরে এই স্টেশন নির্মাণ সম্পন্ন হয়েছে বলে কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে।

রাষ্ট্রীয় প্রচারমাধ্যম সিসিটিভিতে প্রচারিত অডিওতে নভোচারী কমান্ডার চেন ডং, লিউ ইয়াং ও কাই জুজে বলেছেন, অবতরণের পর তারা সুস্থ বোধ করছেন।

চীনের স্পেস এজেন্সির পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, ৯ ঘণ্টার যাত্রা শেষে ভালোভাবে ফিরে এসেছেন তিন নভোচারী। অভিযান সফলভাবে সম্পন্ন হয়েছে।

চীনের প্রথম নারী মহাকাশচারী লিউ ইয়াং বলেছেন, মহাকাশ স্টেশনে আমার অবিস্মরণীয় স্মৃতি রয়েছে। মাতৃভূমিতে ফিরে আসতে পেরে আমি উচ্ছ্বসিত।

এর আগে গত বছরের জুনে একই মহাকাশ স্টেশনে গিয়ে সেপ্টেম্বরে ফিরে আসেন চীনের তিন নভোচারী। ৯০ দিন তারা সেখানে কাটিয়েছিলেন।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, সফল এই অভিযানের ফলে মহাকাশে নিজেদের সক্ষমতা বৃদ্ধির বিষয়ে আরও আত্মবিশ্বাসী হয়ে উঠল চীন।

মহাকাশে থাকাকালীন নভোচারীরা পৃথিবীতে পরীক্ষামূলকভাবে তথ্য সরবরাহ, ঘণ্টার পর ঘণ্টা হাঁটাসহ দৈনন্দিন নানা কাজ সম্পন্ন করেছেন।

মহাকাশ স্টেশনটির কেন্দ্রীয় অংশ তিয়ানহে মডিউলে প্রত্যেক নভোচারীর জন্য পৃথক থাকার জায়গা, মহাকাশে চলতে সক্ষম বিশেষ নকশার ট্রেডমিল-বাইসাইকেলসহ শরীরচর্চাকেন্দ্র ইত্যাদি রয়েছে।

গত কয়েক বছরে মহাকাশ গবেষণায় উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি অর্জন করেছে বেইজিং। এমনকি বিশ্বের প্রথম দেশ হিসেবে চাঁদের সবচেয়ে দূরের অংশে একটি রোবটচালিত রোভারও পাঠিয়েছে তারা।

আন্তর্জাতিক মহাকাশ স্টেশনে অংশ নেই বলে নিজস্ব মহাকাশ কেন্দ্র নির্মাণ করতে হয়েছে চীনকে।

আরও পড়ুন:
ভারতের সঙ্গে যৌথ মহড়ায় চীনকে চুপ থাকার আহ্বান যুক্তরাষ্ট্রের
হতাশা থেকেই চীনে বিক্ষোভ: শি চিনপিং
চীনের গুয়াংজুতে বিক্ষোভকারীদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষ

মন্তব্য

p
উপরে