× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

রেস-জেন্ডার
Sarah led the UN mission to investigate human rights abuses in Iran
hear-news
player
google_news print-icon

ইরানে মানবাধিকার লঙ্ঘন তদন্তে সারার নেতৃত্বে জাতিসংঘ মিশন

ইরানে-মানবাধিকার-লঙ্ঘন-তদন্তে-সারার-নেতৃত্বে-জাতিসংঘ-মিশন
মাহসা আমিনির মৃত্যুর পর ইরানে চলমান বিক্ষোভে মানবাধিকার লঙ্ঘনের অভিযোগ তদন্ত করবে সারা হোসেনের নেতৃত্বে জাতিসংঘের মানবাধিকার কাউন্সিলের মিশন। ছবি কোলাজ: নিউজবাংলা
জাতিসংঘ মানবাধিকার কাউন্সিলের বিশেষ অধিবেশনে একটি স্বাধীন আন্তর্জাতিক ফ্যাক্ট ফাইন্ডিং মিশন প্রতিষ্ঠার সিদ্ধান্ত হয়। এই মিশন ইসলামিক প্রজাতন্ত্র ইরানে গত ১৬ সেপ্টেম্বর শুরু হওয়া বিক্ষোভের সঙ্গে সম্পর্কিত মানবাধিকার লঙ্ঘন, বিশেষত নারী ও শিশুবিষয়ক অধিকার হরণের অভিযোগগুলো অনুসন্ধান করবে।

ইরানে নারীর পোশাকের স্বাধীনতার দাবিতে চলমান আন্দোলনে মানবাধিকার লঙ্ঘনের অভিযোগ তদন্তে জাতিসংঘের মানবাধিকার কাউন্সিলের ফ্যাক্ট ফাইন্ডিং মিশনের প্রধান হিসেবে মনোনীত হয়েছেন বাংলাদেশি মানবাধিকারকর্মী ও আইনজীবী সারা হোসেন।

তার নেতৃত্বে তিন সদস্যের এই মিশন ইরানে ১৬ সেপ্টেম্বর থেকে চলমান বিক্ষোভ দমনে নিরাপত্তা বাহিনীর ভূমিকা ও মানবাধিকার লঙ্ঘনের অভিযোগগুলো অনুসন্ধান করবে। মিশনের অন্য দুই সদস্য হলেন পাকিস্তানের শাহীন সরদার আলী এবং আর্জেন্টিনার ভিভিয়ানা ক্রিস্টিসেভিচ।

জাতিসংঘ মানবাধিকার কাউন্সিলের ওয়েবসাইটে মঙ্গলবার এক বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, সংস্থার প্রেসিডেন্ট ফেডরিকো ভিলেগাস এই ফ্যাক্ট ফাইন্ডিং মিশনের তিন সদস্যকে নিয়োগের ঘোষণা দিয়েছেন।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, গত ২৪ নভেম্বর জাতিসংঘ মানবাধিকার কাউন্সিলের বিশেষ অধিবেশনে একটি স্বাধীন আন্তর্জাতিক ফ্যাক্ট ফাইন্ডিং মিশন প্রতিষ্ঠার সিদ্ধান্ত হয়। এই মিশন ইসলামিক প্রজাতন্ত্র ইরানে গত ১৬ সেপ্টেম্বর শুরু হওয়া বিক্ষোভের সঙ্গে সম্পর্কিত মানবাধিকার লঙ্ঘন, বিশেষত নারী ও শিশুবিষয়ক অধিকার হরণের অভিযোগগুলো অনুসন্ধান করবে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, ইরানে সম্প্রতি নারী অধিকার নিয়ে যে আন্দোলন হয়েছে তাতে আন্দোলনকারীদের মানবাধিকার কীভাবে লঙ্ঘিত হয়েছে তা তদন্ত করবে এই মিশন। মিশন জাতিসংঘ মানবাধিকার পরিষদের পক্ষে মানবাধিকার লঙ্ঘনের তথ্যপ্রমাণ সংগ্রহ ও বিশ্লেষণ করবে।

মিশনের তিন সদস্যকে বেছে নিতে জাতিসংঘ মানবাধিকার কাউন্সিলের প্রেসিডেন্ট বিভিন্ন স্টেকহোল্ডারদের কাছে যোগ্য এবং নিরপেক্ষ ব্যক্তিদের বিষয়ে সুপারিশ আহ্বান করেন। আর সেখান থেকেই সারা হোসেন, শাহীন সরদার আলী ও ভিভিয়ানা ক্রিস্টিসেভিচকে নির্বাচন করা হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, এই মিশনকে আগামী বছরের জুনে মানবাধিকার কাউন্সিলের ৫৩তম অধিবেশনে একটি একটি মৌখিক অগ্রগতির তথ্য উপস্থাপনের অনুরোধ করা হয়েছে। এরপর ২০২৪ সালের মার্চে অনুষ্ঠেয় ৫৫তম একটি সমন্বিত প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে।

কুর্দি নারী মাহসা আমিনিকে গত ১৩ সেপ্টেম্বর তেহরানের ‘নৈতিকতা পুলিশ’ গ্রেপ্তার করে। ইরানের দক্ষিণাঞ্চল থেকে তেহরানে ঘুরতে আসা মাহসাকে একটি মেট্রো স্টেশন থেকে গ্রেপ্তার করা হয়। তার বিরুদ্ধে অভিযোগ ছিল, তিনি সঠিকভাবে হিজাব করেননি।

পুলিশ হেফাজতে থাকার সময়েই মাহসা অসুস্থ হয়ে পড়েন, এরপর তিনি কোমায় চলে যান। হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ১৬ সেপ্টেম্বর তার মৃত্যু হয়। পুলিশ মাহসাকে হেফাজতে নির্যাতনের অভিযোগ অস্বীকার করলেও পরিবারের অভিযোগ গ্রেপ্তারের পর তাকে পেটানো হয়।

মাহসার মৃত্যুর পরই ইরানজুড়ে ছড়িয়ে পড়ে বিক্ষোভ। হিউম্যান রাইটস অ্যাক্টিভিস্ট নিউজ এজেন্সির তথ্য অনুযায়ী, ৯ ডিসেম্বর পর্যন্ত বিক্ষোভ ও সহিংসতায় ৪৭৯ জন নিহত হয়েছেন, যাদের মধ্যে শিশুর সংখ্যা ৬৮। তবে ইরান সরকারের দাবি অনুযায়ী, অব্যাহত বিক্ষোভে নিরাপত্তা বাহিনীর ৬১ সদস্যসহ নিহতের সংখ্যা ২৫১। বিক্ষোভে অংশ নেয়ার অভিযোগে গ্রেপ্তার হয়েছেন ১৫ হাজারের বেশি নারী-পুরুষ।

সরকারের দমন-পীড়নের বিরুদ্ধে অবস্থান নেয়া বেশ কয়েকজনকে মৃত্যুদণ্ডও দিয়েছে ইরানের আদালত। ইতোমধ্যে কার্যকর হয়েছে দুজনের ফাঁসি

আরও পড়ুন:
‘চুল না ঢাকলে নারীদের ৭৪টি বেত্রাঘাত করা উচিত’
‘খোমেনির বাণী সত্য, আমেরিকা বড় শয়তান’
বিক্ষোভ দমাতে শ্লীলতাহানিকে অস্ত্রের মতো ব্যবহার ইরানি পুলিশের
ইরানে রক্তক্ষরণে স্কুলছাত্রীর মৃত্যু, প্রাণহানি বেড়ে ২৩৩
ইরান বিক্ষোভের স্ফুলিঙ্গ যে ৩ নারী

মন্তব্য

আরও পড়ুন

রেস-জেন্ডার
Adanis three institutions under surveillance in the capital market

পুঁজিবাজারে নজরদারিতে আদানির তিন প্রতিষ্ঠান

পুঁজিবাজারে নজরদারিতে আদানির তিন প্রতিষ্ঠান আদানি গ্রুপের লোগোর পাশে কর্ণধার গৌতম আদানি। ছবি: সংগৃহীত
অন্যান্য দিনের মতো বৃহস্পতিবারও আদানি গ্রুপের হোল্ডিং কোম্পানি আদানি এন্টারপ্রাইজেসের শেয়ার ২৬ শতাংশের বেশি দর হারিয়েছে। গ্রুপের অন্য কোম্পানিগুলোর শেয়ারের দরপতনও অব্যাহত রয়েছে। সব মিলিয়ে ছয় দিনে পুঁজিবাজার থেকে কোম্পানিগুলোর ৮ লাখ ৭৬ হাজার কোটি রুপি উধাও হয়ে গেছে।

পুঁজিবাজারে দরপতনের হিড়িকের মধ্যে স্বল্পমেয়াদি বাড়তি নজরদারি ব্যবস্থায় (এএসএম) রাখা হয়েছে বিশ্বের শীর্ষস্থানীয় ধনকুবের গৌতম আদানির মালিকানাধীন আদানি গ্রুপের তিনটি প্রতিষ্ঠানকে।

ভারতের মুম্বাইভিত্তিক বোম্বে স্টক এক্সচেঞ্জ (বিএসই) ও ন্যাশনাল স্টক এক্সচেঞ্জ (এনএসই) থেকে বৃহস্পতিবার পাওয়া তথ্যের ভিত্তিতে শুক্রবার এ খবর জানায় এনডিটিভি।

নজরদারিতে থাকা প্রতিষ্ঠান তিনটি হলো আদানি এন্টারপ্রাইজ, আদানি পোর্টস অ্যান্ড স্পেশাল ইকনোমিক জোন এবং আম্বুজা সিমেন্টস।

যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক প্রতিষ্ঠান হিন্ডেনবার্গ রিসার্চ গ্রুপের সাম্প্রতিক এক প্রতিবেদনে আদানি গ্রুপের বিরুদ্ধে পুঁজিবাজারে লেনদেনে প্রতারণা ও শেয়ার দরে কারসাজির অভিযোগ করা হয়। এর পর থেকে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত আদানি গ্রুপের কোম্পানিগুলোর শেয়ারের দরে ধস নামে।

ওই প্রতিবেদনকে মিথ্যা আখ্যা দিয়ে আদানি গ্রুপ বলেছে, তাদের কোম্পানিগুলো সব আইন মেনে চলছে।

বেশ কয়েকটি বিষয়ের ওপর ভিত্তিতে কোনো কোম্পানিকে এএসএমের আওতায় রাখা হয়। এর মধ্যে রয়েছে কোম্পানির আয়ের ওপর গ্রাহকদের অংশীদারত্ব, প্রাইস-আর্নিং রেশিও ইত্যাদি।

এনএসই ও বিএসই জানিয়েছে, আদানি গ্রুপের তিনটি কোম্পানি নির্ধারিত মানদণ্ডে পড়ায় এগুলোকে এএসএমের আওতাভুক্ত করা হয়েছে।

এদিকে অন্যান্য দিনের মতো বৃহস্পতিবারও আদানি গ্রুপের হোল্ডিং কোম্পানি আদানি এন্টারপ্রাইজেসের শেয়ার ২৬ শতাংশের বেশি দর হারিয়েছে। গ্রুপের অন্য কোম্পানিগুলোর শেয়ারের দরপতনও অব্যাহত রয়েছে।

সব মিলিয়ে ছয় দিনে পুঁজিবাজার থেকে কোম্পানিগুলোর ৮ লাখ ৭৬ হাজার কোটি রুপি উধাও হয়ে গেছে।

আরও পড়ুন:
সূচক কমলেও বেড়েছে লেনদেন
সূচকের সঙ্গে কমল লেনদেনও
ডিএসই’র সতর্কতার পরও ছুটছে ঢাকা ইন্স্যুরেন্স
বিশ্বের শীর্ষ ধনীর পাঁচেও নেই আদানি
পুঁজিবাজারে কয়েক ঘণ্টায় ২ লাখ কোটি রুপি উধাও আদানির

মন্তব্য

রেস-জেন্ডার
Adani Group bought Haifa port in Israel

ইসরায়েলের বন্দর হাইফা কিনল আদানি গ্রুপ

ইসরায়েলের বন্দর হাইফা কিনল আদানি গ্রুপ ফাইল ছবি
আদানি গ্রুপ ইসরায়েলে অধিকতর বিনিয়োগের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। তারই অংশ হিসেবে তারা হাইফা বন্দর কিনল।

১২০ কোটি ডলারে ইসরায়েলের গুরুত্বপূর্ণ বন্দর হাইফা কিনে নিল ভারতের শীর্ষ শিল্পগোষ্ঠী আদানি গ্রুপ।

হিনডেনবার্গের প্রতিবেদনের জেরে বিধ্বস্ত আদানি গোষ্ঠীর বাজার মূলধন প্রায় ৭ হাজার কোটি ডলার কমার মধ্যেই মঙ্গলবার ওই বন্দর কেনার ঘোষণা আসে বলে জানিয়েছে এনডিটিভি।

সুউচ্চ বিভিন্ন ভবন নির্মাণ করে ভূমধ্যসাগরীয় শহরটিকে পাল্টে দেয়ার অঙ্গীকার করা হয়েছে ভারতীয় এই ব্যবসায়ী গ্রুপের পক্ষে।

আদানি গ্রুপ ইসরায়েলে অধিকতর বিনিয়োগের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। তারই অংশ হিসেবে তারা হাইফা বন্দর কিনল। এছাড়া তারা তেল আবিবে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা গবেষণাগার (আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স ল্যাবরেটরি) চালু করতে যাচ্ছে।

জালিয়াতিসহ বিভিন্ন অভিযোগে বিপুল পরিমাণ লোকসানের কারণে গৌতম আদানির ব্যবসায়িক সাম্রাজ্যে সম্প্রতি বড় ধরনের ধস নেমেছে।

কৌশলগত কারণে হাইফা বন্দরটি খুব গুরুত্বপূর্ণ। এখান থেকে পণ্যবাহী জাহাজ চলাচল করে এবং সবচেয়ে বড় পর্যটকবাহী বিলাসবহুল জাহাজও (ক্রুজ শিপ) এই বন্দরে ভিড়ে। এছাড়া এটি ইসরায়েলের দ্বিতীয় বৃহত্তম বন্দর।

আরও পড়ুন:
বিশ্বের শীর্ষ ধনীর পাঁচেও নেই আদানি
পুঁজিবাজারে কয়েক ঘণ্টায় ২ লাখ কোটি রুপি উধাও আদানির
ভারতের আদানি এখন বিশ্বের তৃতীয় ধনী

মন্তব্য

রেস-জেন্ডার
The dream is now in Manikganj

‘স্বপ্ন’ এখন মানিকগঞ্জে

‘স্বপ্ন’ এখন মানিকগঞ্জে মানিকগঞ্জ বাসস্ট্যান্ড এলাকায় মঙ্গলবার উদ্বোধন হয় স্বপ্নের আউটলেটের। ছবি: নিউজবাংলা
স্বপ্নের নির্বাহী পরিচালক সাব্বির হাসান নাসির বলেন, “‘স্বপ্ন’ এখন দেশের ৫১টি জেলায়। মানিকগঞ্জের নতুন এই আউটলেটে আমাদের সেবার পরিসর আরও বিস্তৃত হবে। আশা করছি স্বাস্থ্যসম্মত ও নিরাপদ পরিবেশে গ্রাহকরা স্বপ্নের এ আউটলেট থেকে নিয়মিত বাজারের সুযোগ পাবেন।”

মানিকগঞ্জ বাসস্ট্যান্ড এলাকায় উদ্বোধন হয়েছে দেশের বৃহত্তম রিটেইল চেইন শপ স্বপ্নের আউটলেট।

মঙ্গলবার বেলা ১১টার দিকে নতুন এই আউটলেটের উদ্বোধন করা হয়।

ওই সময় উপস্থিত ছিলেন এফবিসিসিআই পরিচালক তোসাদ্দেক হোসেন খান টিটো, স্বপ্নের হেড অফ বিজনেস এক্সপ্যানশন মো. শামছুজ্জামান, রিজিওনাল ম্যানেজার অফ অপারেশন সাজিদ আহমেদ, ম্যানেজার (প্রজেক্ট ডেভেলপমেন্ট) মেহেদী হাসান রাহাত, আউটলেট অপারেশন ম্যানেজার মাসুদুর রহমানসহ অনেকে।

স্বপ্নের নির্বাহী পরিচালক সাব্বির হাসান নাসির বলেন, “‘স্বপ্ন’ এখন দেশের ৫১টি জেলায়। মানিকগঞ্জের নতুন এই আউটলেটে আমাদের সেবার পরিসর আরও বিস্তৃত হবে। আশা করছি স্বাস্থ্যসম্মত ও নিরাপদ পরিবেশে গ্রাহকরা স্বপ্নের এ আউটলেট থেকে নিয়মিত বাজারের সুযোগ পাবেন।”

স্বপ্নের অপারেশন্স ডিরেক্টর আবু নাছের জানান, নতুন এ আউটলেটে থাকছে মাসব্যাপী নানা অফার ও হোম ডেলিভারি সেবা।

স্বপ্নের ২৯৩তম আউটলেটের ঠিকানা: সিটি সেন্টার, ১৬/ঢাকা-আরিচা হাইওয়ে রোড, মানিকগঞ্জ বাসস্ট্যান্ড, মানিকগঞ্জ।

আরও পড়ুন:
সিলেটের শাহপরাণে স্বপ্নের নতুন আউটলেট
স্বপ্না ভৌমিক এমএন্ডএস’র ভারতেরও প্রধান
বগুড়ার পুলিশ প্লাজায় চেইন শপ ‘স্বপ্ন’
নবীনগর পৌঁছে গেল ‘স্বপ্ন’
স্বপ্ন এখন সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুরে

মন্তব্য

রেস-জেন্ডার
24 lives fell into a bus ditch in Peru

পেরুতে বাস খাদে পড়ে গেল ২৪ প্রাণ

পেরুতে বাস খাদে পড়ে গেল ২৪ প্রাণ দুর্ঘটনাকবলিত বাস। ছবি: সংগৃহীত
পেরুর পরিবহন পর্যবেক্ষণকারী সংস্থা এসইউটিআরএএন এক বিবৃতিতে দুর্ঘটনার বিষয়টি নিশ্চিত করেছে। তবে হতাহতের কোনো সংখ্যা তারা উল্লেখ করেনি।

পেরুর উত্তরাঞ্চলে একটি যাত্রীবাহী বাস খাদে পড়ে অন্তত ২৪ জন নিহত হয়েছেন।

স্থানীয় সময় শনিবার দেশটির এল অলটো জেলায় পাহাড়ি রাস্তায় এ দুর্ঘটনা ঘটে বলে পুলিশের বরাত দিয়ে জানিয়েছে রয়টার্স

পেরুর পরিবহন পর্যবেক্ষণকারী সংস্থা এসইউটিআরএএন এক বিবৃতিতে দুর্ঘটনার বিষয়টি নিশ্চিত করেছে। তবে হতাহতের কোনো সংখ্যা তারা উল্লেখ করেনি।

স্থানীয় গণমাধ্যম বলছে, ৬০ জন যাত্রী নিয়ে লিমা থেকে ইকুয়েডর সীমান্তবর্তী টুম্বেসে যাচ্ছিল বাসটি। পথে এটি অরগানোস শহরের কাছে রাস্তার পাশের গভীর খাদে পড়ে যায়।

পেরুতে প্রায়ই সড়ক দুর্ঘটনা ঘটে থাকে। এসব দুর্ঘটনায় প্রাণহানির সংখ্যাও কম নয়।

আরও পড়ুন:
শ্রীমঙ্গলে অটোরিকশায় পিকআপের ধাক্কা, নিহত ২
অ্যাম্বুলেন্সচাপায় রিকশাচালক নিহত, আহত একই পরিবারের ৪ জন
সড়কে গেল পীর-মুরিদের প্রাণ

মন্তব্য

রেস-জেন্ডার
55 executions in 26 days in Iran

ইরানে ২৬ দিনে ৫৫ ফাঁসি

ইরানে ২৬ দিনে ৫৫ ফাঁসি ইরানে এক আসামির মৃত্যুদণ্ড কার্যকর হচ্ছে। ছবি: সংগৃহীত
আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংস্থা অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল জানায়, সরকারবিরোধী আন্দোলনে জড়িত থাকার দায়ে সম্প্রতি ইরানে তিন যুবকের মৃত্যুদণ্ড দেয়া হয়েছে। যাদের মধ্যে একজনের বয়স মাত্র ১৮।

ইরানে নতুন বছরের প্রথম ২৬ দিনে ৫৫ জনের ফাঁসি কার্যকরা হয়েছে বলে জানিয়েছে নরওয়েভিত্তিক মানবাধিকার সংস্থা ইরান হিউম্যান রাইটস (আইএইচআর)। সংস্থাটি বলছে, পোশাকের স্বাধীনতার দাবিতে আন্দোলনরতদের ভয় দেখাতে মৃত্যুদণ্ড কার্যকরের পরিমাণ বাড়িয়ে দিয়েছে তেহরান।

এদিকে আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংস্থা অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল জানায়, সরকারবিরোধী আন্দোলনে জড়িত থাকার দায়ে সম্প্রতি ইরানে তিন যুবকের মৃত্যুদণ্ড দেয়া হয়েছে। যাদের মধ্যে একজনের বয়স মাত্র ১৮।

আইএইচআরের প্রতিবেদনে বলা হয়, বছরের প্রথম ২৬ দিনে মাদক মামলার ৩৭ আসামিকে ফাঁসিতে ঝোলানো হয়েছে। এছাড়া সরকারবিরোধী আন্দোলনের সঙ্গে জড়িত থাকার দায়ে চারজনের মৃত্যুদণ্ড কার্যকর হয়েছে।

সংস্থাটি জানায়, পোশাকের স্বাধীনতার দাবিতে চলমান আন্দোলনের সঙ্গে জড়িত থাকার দায়ে ইরানে ১০৭ জনকে মৃত্যুদণ্ড দেয়া হয়েছে।

এ নিয়ে আইএইচআর-এর পরিচালক মাহমুদ আমিরি মোঘদ্দাম বলেন, ‘আন্দোলনকারীদের ভয় দেখাতে মৃত্যুদণ্ড কার্যকরের পরিমাণ বাড়িয়ে দিয়েছে ইরান সরকার। কোনো ফাঁসি বরদাস্ত করা হবে না, তা সে রাজনৈতিক হোক বা অরাজনৈতিক।’

সঠিকভাবে হিজাব না পরার অভিযোগে ইরানের নৈতিকতা পুলিশের হাতে গ্রেপ্তার কুর্দি তরুণী মাহসা আমিনির মৃত্যু হয় গত বছরের ১৬ সেপ্টেম্বর। সেদিন থেকেই প্রতিবাদ ছড়িয়ে পড়ে গোটা ইরানে।

বিক্ষোভ থামাতে আন্দোলনকারীদের বিরুদ্ধে ইরান সরকার ধরপাকড় চালায় বলে অভিযোগ ওঠে। এর মধ্যে মৃত্যুদণ্ড কার্যকরের এ সংখ্যা উদ্বেগ তৈরি করেছে।

আরও পড়ুন:
ইউক্রেনের ফ্লাইটে হামলা: ইরানের বিরুদ্ধে পদক্ষেপ
‘ইরানে ১০০ বিক্ষোভকারীর সামনে ফাঁসির দড়ি’
ইরানে স্টারলিংকের ১০০ স্যাটেলাইট সক্রিয়: মাস্ক
ইরানে নারীর পোশাকের স্বাধীনতা দাবির ১০০ দিন
মৃত্যুদণ্ডের বিরুদ্ধে ইরানের র‍্যাপারের আপিল গ্রহণ

মন্তব্য

রেস-জেন্ডার
Canada appointed adviser to combat Islamophobia

ইসলামবিদ্বেষ কাটাতে উপদেষ্টা নিয়োগ করল কানাডা

ইসলামবিদ্বেষ কাটাতে উপদেষ্টা নিয়োগ করল কানাডা কানাডার সাংবাদিক আমিরা এলঘাওয়াবি। ছবি: এএফপি
মানবাধিকার কর্মী এলঘাওয়াবি কানাডার দাতব্য সংস্থ রেস রিলেশনস ফাউন্ডেশনের যোগাযোগ বিভাগের প্রধান ও টরন্টো স্টার পত্রিকার একজন কলামিস্ট। এর আগে রাষ্ট্রীয় সংবাদমাধ্যম সিবিসিতে এক দশকেরও বেশি সময় ধরে কাজ করেছেন তিনি।

ইসলামবিদ্বেষ কাটাতে প্রথমবারের মতো উপদেষ্টা নিয়োগ করলো কানাডা সরকার।

স্থানীয় সময় বৃহস্পতিবার কানাডার ইসলামবিদ্বেষবিরোধী উপদেষ্টা হিসেবে সাংবাদিক আমিরা এলঘাওয়াবির নাম ঘোষণা করা হয়।

এ নিয়ে বিবৃতিতে কানাডার প্রধানমন্ত্রীর অফিস থেকে বলা হয়, সাংবাদিক ও অ্যাক্টিভিস্ট আমিরা এলঘাবাবি ইসলামভীতি, বর্ণবাদ, জাতিগত বৈষম্য এবং ধর্মীয় অসহিষ্ণুতার বিরুদ্ধে লড়াইয়ে কেন্দ্রীয় সরকারের প্রচেষ্টাকে উন্নত করতে কাজ করবেন।

মানবাধিকার কর্মী এলঘাওয়াবি কানাডার দাতব্য সংস্থ রেস রিলেশনস ফাউন্ডেশনের যোগাযোগ বিভাগের প্রধান ও টরন্টো স্টার পত্রিকার একজন কলামিস্ট। এর আগে রাষ্ট্রীয় সংবাদমাধ্যম সিবিসিতে এক দশকেরও বেশি সময় ধরে কাজ করেছেন তিনি।

এলঘাওয়াবিকে নিয়োগ দেয়ার বিষয়ে কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো বলেন, ‘ইসলামবিদ্বেষ ও সব ধরনের ঘৃণা-বিদ্বেষের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে এটি আমাদের গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ। বৈচিত্রতা সত্যিই কানাডার অন্যতম বড় শক্তি, কিন্তু অনেক মুসলমান ইসলামবিদ্বেষের শিকার।’

গত কয়েক বছর ধরে কানাডার মুসলমান সম্প্রদায়কে লক্ষ্য করে একের পর এক ভয়াবহ হামলা চালানো হয়েছে।

২০২১ সালের জুনে অন্টারিওতে একটি মুসলিম পরিবারের চার সদস্যকে ট্রাক দিয়ে পিষে হত্যা করেন এক ব্যক্তি। এর চার বছর আগে, কুইবেক সিটির একটি মসজিদে চালানো হামলায় ছয়জন মুসল্লি নিহত এবং পাঁচজন আহত হন।

আরও পড়ুন:
কানাডীয় দূতের সঙ্গে বৈঠক, কিছু জানাবে না বিএনপি
২০২৫ সালে রেকর্ড অভিবাসী নেবে কানাডা
কানাডায় ছুরি হামলার দ্বিতীয় সন্দেহভাজনের মৃত্যু
কানাডায় সন্দেহভাজন হামলাকারীর মরদেহ উদ্ধার
কানাডায় সিরিজ ছুরি হামলায় নিহত ১০

মন্তব্য

রেস-জেন্ডার
Opium production increased in Myanmar under military rule UN

সেনাশাসনে আফিম উৎপাদন বেড়েছে মিয়ানমারে: জাতিসংঘ

সেনাশাসনে আফিম উৎপাদন বেড়েছে মিয়ানমারে: জাতিসংঘ মিয়ানমারের কায়াহ রাজ্যের লইকাউয়ে একটি পপি ক্ষেতে কাজ করছেন এক ব্যক্তি। ছবি: রয়টার্স
অং সান সু চির নেতৃত্বাধীন গণতান্ত্রিক সরকারকে হটিয়ে ২০২১ সালের ফেব্রুয়ারিতে সেনাবাহিনী ক্ষমতা নেয়ার পর পপি চাষের প্রথম পূর্ণ মৌসুমের ডেটা সংগ্রহ করে ইউএনওডিসি। সে ডেটা অনুযায়ী, ২০২২ সালে মিয়ানমারে পপির চাষ বেড়েছে ৩৩ শতাংশ, যেখানে আফিমের সম্ভাব্য উৎপাদন বাড়ে ৮৮ শতাংশ।

মিয়ানমারের সেনাবাহিনী ২০২১ সালে ক্ষমতা দখলের পর থেকে দেশটিতে আফিমের উৎপাদন বেড়েছে বলে জানিয়েছে জাতিসংঘের মাদক ও অপরাধবিষয়ক দপ্তর ইউএনওডিসি।

সংস্থাটি জানিয়েছে, সেনা-অভ্যুথানের আগে ২০১৪ থেকে ২০২০ সাল পর্যন্ত মিয়ানমারে পপি উৎপাদন ধীরে ধীরে কমছিল।

অং সান সু চির নেতৃত্বাধীন গণতান্ত্রিক সরকারকে হটিয়ে ২০২১ সালের ফেব্রুয়ারিতে সেনাবাহিনী ক্ষমতা নেয়ার পর পপি চাষের প্রথম পূর্ণ মৌসুমের ডেটা সংগ্রহ করে ইউএনওডিসি। সে ডেটা অনুযায়ী, ২০২২ সালে মিয়ানমারে পপির চাষ বেড়েছে ৩৩ শতাংশ, যেখানে আফিমের সম্ভাব্য উৎপাদন বাড়ে ৮৮ শতাংশ।

জাতিসংঘের সংস্থাটির মতে, গত বছর মিয়ানমারে ৪০ হাজার হেক্টরের চেয়ে সামান্য বেশি জমিতে পপির চাষ হয়। এ থেকে আফিমের সম্ভাব্য উৎপাদন হয় ৭৯০ টন।

ইউএনওডিসির বৃহস্পতিবারের বিবৃতিতে বলা হয়, ২০২২ সালের জরিপ বলছে, মিয়ানমারের আফিমকেন্দ্রিক অর্থনীতির উল্লেখযোগ্য বিকাশ হয়েছে।

ইউএনওডিসির আঞ্চলিক প্রতিনিধি জেরেমি ডগলাস বলেন, সেনারা মিয়ানমারের দায়িত্ব নেয়ার পর অর্থনৈতিক, নিরাপত্তা এবং শাসনজনিত যে ব্যাঘাত ঘটেছে, তা থেকে সৃষ্ট পরিস্থিতিতে দেশটিতে আফিম উৎপাদন বেড়েছে।

তিনি বলেন, প্রত্যন্ত ও সংঘাতপীড়িত উত্তরাঞ্চলীয় রাজ্য শান ও সীমান্তবর্তী রাজ্যগুলোতে আফিম চাষে ফিরে যাওয়া ছাড়া খুব কমই বিকল্প আছে স্থানীয় কৃষকদের।

আরও পড়ুন:
তুমব্রু সীমান্তে আবারও গোলাগুলি, আতঙ্ক
মিয়ানমারের ছয় নাগরিকের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
মিয়ানমার ছাড়ার চেষ্টা, ১১২ রোহিঙ্গার কারাদণ্ড
সু চির আরও ৭ বছরের জেল, সব মিলিয়ে ৩৩
নাফ নদীতে বাংলাদেশি জেলে গুলিবিদ্ধ

মন্তব্য

p
উপরে