সাকিবকে ছাড়া প্রথম ম্যাচ জিতল মোহামেডান

সাকিবকে ছাড়া প্রথম ম্যাচ জিতল মোহামেডান

৬৪ রানের ইনিংস খেলে ম্যাচসেরা হন ইরফান শুক্কুর। ফাইল ছবি

সাভারে বিকেএসপির চার নম্বর মাঠের ম্যাচে সকালে ওল্ডডিওএইচএস স্পোর্টস ক্লাবকে বৃষ্টি আইনে পাঁচ রানে হারায় মোহামেডান। এই জয়ে সুপার লিগে খেলার আশা বাঁচিয়ে রাখল পুরান ঢাকার ঐতিহ্যবাহী ক্লাবটি। সাকিবের অনুপস্থিতিতে দলকে নেতৃত্ব দিচ্ছেন শুভাগত হোম।

অশোভন আচরণের জন্য তিন ম্যাচের নিষেধাজ্ঞায় আছেন সাকিব আল হাসান। নিয়মিত অধিনায়ককে ছাড়াই ঢাকা প্রিমিয়ার লিগে (ডিপিএল) অষ্টম ম্যাচ খেলতে নামে মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাব। বিশ্বসেরা অলরাউন্ডারকে ছাড়াই তারা জিতেছে ম্যাচ।

সাভারে বিকেএসপির চার নম্বর মাঠের ম্যাচে সকালে ওল্ডডিওএইচএস স্পোর্টস ক্লাবকে বৃষ্টি আইনে পাঁচ রানে হারায় মোহামেডান। এই জয়ে সুপার লিগে খেলার আশা বাঁচিয়ে রাখল পুরান ঢাকার ঐতিহ্যবাহী ক্লাবটি। সাকিবের অনুপস্থিতিতে দলকে নেতৃত্ব দিচ্ছেন শুভাগত হোম।

সকালে আম্পায়ারদের গাড়িতে ভাঙচুরের ঘটনায় আধঘণ্টা দেরিতে টস হয় ম্যাচে। টস জিতে মোহামেডানকে ব্যাট করার আমন্ত্রণ জানান ডিওএইচএসের অধিনায়ক মোহাইমিনুল হক। ব্যাট করতে নেমে পারভেজ ইমন ও আব্দুল মজিদ দেখেশুনে শুরু করেন মোহামেডানের হয়ে।

পাওয়ার প্লের শেষ ওভারে ভাঙ্গে ওপেনিং জুটি। ইমনকে ১৪ রানে ফেরান রাকিবুল হাসান।

২৯ রান করা মজিদ আউট হন আসাদুজ্জামান পায়েলের বলে বোল্ড হয়ে। এরপরই দলের হাল ধরেন ইরফান শুক্কুর। ঝড়ো ইনিংস খেলে মোহামেডানকে এনে দেন লড়াই করার পুঁজি।



এবারের ডিপিএলে নিজের দ্বিতীয় ফিফটি তুলে নেন তিনি। ৪২ বলে খেলেন ৬৮ রানের অপরাজিত ইনিংস। পাঁচ ছক্কা ও তিনটি চারের মার ছিল তার ইনিংসে।

শুক্কুরের ঝড়ো ব্যাটিংয়েই দেড় শ ছাড়ায় মোহামেডানের ইনিংস। নির্ধারিত ওভারে পাঁচ উইকেটে ১৫৪ রান করে তারা।

জবাবে ব্যাট করতে নেমে, আনিসুল ইসলাম ও রাকিন আহমেদের ব্যাটে দারুণ শুরু করে ওল্ড ডিওএইচএস। সাত ওভারে ৪৫ রান তুলে ফেলেন তারা। অষ্টম ওভারের তৃতীয় বলে ইমন ২৩ রানে রানআউট হলে ভাঙ্গে উদ্বোধনী জুটি।

পরের ওভারে বিদায় নেন ১৭ রান করা রাকিন। তাকে ফেরান অধিনায়ক শুভাগত। মোহামেডান অধিনায়ক রায়ান আহমেদকেও আউট করেন ১২ রানে।

মাহমুদুল হাসান জয় ক্রিজে আসার পর থেকে আক্রমণাত্মক খেলা শুরু করলে কিছুটা চিন্তায় পড়ে মোহামেডান।

২৬ রানে তাকে লেগবিফোরের ফাঁদে ফেলে দলকে স্বস্তি দেন তাসকিন আহমেদ। ১৮ বলে ২৬ রান করেন মাহমুদুল।

অধিনায়ক মোহাইমিনুল খান ও উইকেটকিপার প্রিতম কুমারের জুটির সময় বৃষ্টির ব্যাঘাতে বন্ধ হয় খেলা।

১৬ ওভার শেষে আর খেলা শুরু করা সম্ভব হয়নি। ওই সময় ডিওএইচএসের সংগ্রহ ছিল তখন চার উইকেটে ১১৫। যা কিনা ডার্কওয়ার্থ-লুইস মেথডে পাওয়া লক্ষ্যের চেয়ে পাঁচ রান কম।

ফলে পাঁচ রানের জয় পায় মোহামেডান। এই জয়ে আট ম্যাচে ১০ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের চারে উঠে আসল মোহামেডান। ১১ রাউন্ড পর নির্ধারিত হবে সুপার লিগের সেরা ছয় দল।

মোহামেডান যদি সাকিবকে ছাড়াই বাকি দুই ম্যাচ জিতে সুপার লিগে কোয়ালিফাই করে সেক্ষেত্রে সাকিবের সুপার লিগে খেলাও হবে।

আরও পড়ুন:
সাকিবের শাস্তি কমানোর আবেদন মোহামেডানের
শাস্তি মেনে নিয়েছেন সাকিব
লিগের অনিয়ম নিয়ে ক্লাবগুলোর সঙ্গে বসবে বিসিবি

শেয়ার করুন

মন্তব্য