বহিষ্কারেও দমছে না আওয়ামী লীগের বিদ্রোহ

দিনাজপুরের বীরগঞ্জ পৌরসভার আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী ও স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী মোশাররফ হোসেন বাবুল। ছবি: নিউজবাংলা

বহিষ্কারেও দমছে না আওয়ামী লীগের বিদ্রোহ

পৌর নির্বাচনে মেয়র পদে দলের অনেকেই লড়ছেন স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে। কোনো কোনো পৌরসভায় দুই কিংবা তারও বেশি বিদ্রোহী প্রার্থী রয়েছেন।

দলীয় সিদ্ধান্ত অমান্য করে পৌর নির্বাচনে প্রার্থী হওয়াদের বহিষ্কার করেও বিদ্রোহ দমাতে পারছে না আওয়ামী লীগ।

দ্বিতীয় ধাপে অনুষ্ঠেয় পৌর নির্বাচনে ৬১ পৌরসভার মধ্যে ১৬টিতে অন্তত ২১ জন বিদ্রোহী প্রার্থী নৌকার বিপরীতে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। এদের অনেককেই এরই মধ্যে দল থেকে বহিষ্কারও করা হয়েছে। এরপরেও নির্বাচনে প্রার্থিতায় আছেন তারা।

আরও পড়ুন: ভোট নিয়ে সমালোচনা মুছতে চায় আ. লীগ

বিদ্রোহী প্রার্থীদের বিষয়ে এবার পৌর নির্বাচনের শুরু থেকেই কঠোর মনোভাব দেখিয়ে আসছে আওয়ামী লীগ। দলের শীর্ষ নেতারা হুঁশিয়ারি জানিয়ে বলেছেন, বিদ্রোহীদের আর কখনোই দলের মনোনয়ন দেয়া হবে না। তারপরও পরিস্থিতির কোনো পরিবর্তন নেই।

কেন্দ্রীয় নেতারা বলছেন, বিদ্রোহ দমনে দলের কঠোর মনোভাবের পর পরিস্থিতি শতভাগ না হলেও অন্যান্য বারের চেয়ে ভালো। ভবিষ্যতেও বিদ্রোহীদের বিষয়ে নমনীয় হওয়ার কোনো সুযোগ নেই বলে মনে করছেন তারা।

আরও পড়ুন: ভোটারদের তেল দিয়ে জরিমানা

গত ১৩ ডিসেম্বর দ্বিতীয় দফায় পৌর নির্বাচনের মেয়র পদে মনোনয়ন ফরম বিতরণ শেষ করে আওয়ামী লীগ। ১৮ ডিসেম্বর দলের স্থানীয় সরকার মনোনয়ন বোর্ডের সভায় চূড়ান্ত করা হয় প্রার্থীদের তালিকা।

দ্বিতীয় দফায় ৬১ পৌরসভায় নৌকা প্রতীকে লড়তে ফরম নিয়েছিলেন ৩১৭ জন। অর্থাৎ প্রতিটি পৌরসভায় মেয়র পদে প্রার্থিতা করতে আগ্রহ প্রকাশ করেন গড়ে পাঁচ জন করে।

মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করাদের একটি বড় অংশ পরবর্তীতে নির্বাচন থেকে সরে এলেও অনেকেই লড়ছেন স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে। কোনো কোনো পৌরসভায় দুই কিংবা তারও বেশি বিদ্রোহী প্রার্থী রয়েছেন।

আরও পড়ুন: মাঠে নেই বিএনপি, সরব আওয়ামী লীগ

নিউজবাংলার অনুসন্ধানে দেখা গেছে, রাজশাহী বিভাগের বগুড়ার সারিয়াকান্দি পৌরসভায় নৌকার প্রার্থীর বিপরীতে নির্বাচনের মাঠে আছেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আলমগীর শাহী সুমন। তাকে এরই মধ্যে বহিষ্কার করেছে আওয়ামী লীগ।

রাজশাহীর ভবানীগঞ্জে পৌর আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মামুনুর রশীদ মামুন, আড়ানীতে বর্তমান মেয়র মোক্তার আলী ও সিরাজগঞ্জের বেলকুচিতে উপজেলা যুবলীগের সাবেক আহ্বায়ক সাজ্জাদুল হক রেজা লড়ছেন বিদ্রোহী হিসেবে।

সম্প্রতি বেশ কয়েকটি পৌরসভায় আওয়ামী লীগের প্রার্থীকে হারিয়ে মেয়র নির্বাচিত হয়েছেন বিদ্রোহী প্রার্থীরা। ছবি: নিউজবাংলা

রংপুর বিভাগের দিনাজপুরের বীরগঞ্জ পৌরসভায় বিদ্রোহী হিসেবে লড়ছেন বর্তমান পৌর মেয়র মোশাররফ হোসেন বাবুল ও কুড়িগ্রামের নাগেশ্বরীতে মো. হোসেন ফাকু। মোশাররফ হোসেন বাবুলকে এরই মধ্যে দল থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে।

রংপুর বিভাগের গাইবান্ধা জেলার সদর উপজেলায় আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী আছেন তিন জন। এরা হলেন জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আহসানুল করিম লাচু ও সদস্য ফারুক আহমেদ এবং পৌর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মতবুর রহমান। তিন জনকেই দল থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে।

আরও পড়ুন: ভোটার ফিরল কেন্দ্রে

এদিকে জেলার সুন্দরগঞ্জ পৌরসভায় বিদ্রোহে নাম লিখিয়েছেন খায়রুল হোসেন মাওলা ও দেবাশীষ সাহা।

ময়মনসিংহ বিভাগের মুক্তাগাছায় দলীয় সিদ্ধান্ত উপেক্ষা করে নির্বাচনে অংশ নিয়েছেন আবুল কাশেম। আর ফুলবাড়িয়া পৌরসভায় বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনের মাঠে আছেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক গোলাম মোস্তফা।

বেশ জমেছে এবারের পৌরসভা নির্বাচন। ছবি: নিউজবাংলা

ঢাকা বিভাগে টাঙ্গাইলের ধনবাড়ি পৌরসভায় বিদ্রোহী হিসেবে লড়ছেন যুবলীগ নেতা মনিরুজ্জামান বকল ও কিশোরগঞ্জ সদরে ভোটের মাঠে আছেন সাবেক ছাত্রলীগ নেতা শফিকুল গণি ডালি।

সিলেট বিভাগের মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জে বিদ্রোহী হিসেবে লড়ছেন জেলা শ্রমিক লীগের সভাপতি হেলাল মিয়া ও উপজেলা যুবলীগের সহসম্পাদক আনোয়ার হোসেন। এর মধ্যে হেলাল মিয়াকে সংগঠন থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে।

আরও পড়ুন: আ. লীগের দুশ্চিন্তায় বিদ্রোহ, বিএনপির প্রতিদ্বন্দ্বী জামায়াত

জেলার কুলাউড়া পৌরসভায় উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্য ও সাবেক মেয়র শফি আলম ইউনুস লড়ছেন বিদ্রোহী হিসেবে। তাকে এরই মধ্যে বহিষ্কার করেছে দল। এই পৌরসভায় আওয়ামী লীগের আরেক বিদ্রোহী হলেন শাহজাহান মিয়া।

হবিগঞ্জের মাধবপুর পৌরসভায় সাবেক মেয়র শাহ মুসলেম ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্য পঙ্কজ সাহা লড়ছেন দলীয় প্রার্থীর বিরুদ্ধে।

আরও পড়ুন: গন্ডগোল হলে দায় প্রথমত ওবায়দুল কাদেরের: কাদের মির্জা

তৃণমুলের নেতাকর্মীরা বলছেন, বিদ্রোহী প্রার্থীদের কারণে মাঠপর্যায়ে অনেক সময়ই নেতাকর্মীদের মধ্যে বিভাজন তৈরি হয়। ভোটাররাও হয়ে পড়েন বিভক্ত। আর এতে আওয়ামী লীগের প্রার্থীরা পরাজিতও হন।

স্থানীয় সরকারের বিভিন্ন নির্বাচনে দেখা গেছে বিদ্রোহী প্রার্থীদের দাপট। সম্প্রতি বেশ কয়েকটি পৌরসভায় আওয়ামী লীগের প্রার্থীকে হারিয়ে মেয়র নির্বাচিত হয়েছেন বিদ্রোহী প্রার্থীরা। আওয়ামী লীগের যেসব প্রার্থী নির্বাচিত হয়েছেন, তারাও তীব্র প্রতিদ্বন্দ্বিতার মুখে পড়েন বিদ্রোহীদের কাছে।

বিদ্রোহী প্রার্থীদের কারণে বিভাজন তৈরি হয় মাঠ পর্যায়ের নেতাকর্মীদের মাঝেও। ছবি: নিউজবাংলা


পৌর নির্বাচনে বিদ্রোহ দমনে আগের মতোই কঠোর অবস্থানে আওয়ামী লীগ। দলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক বাহাউদ্দিন নাসিম নিউজবাংলাকে বলেন, ‘কোনো রাজনৈতিক দলের ক্ষেত্রেই শতভাগ সফল হওয়া যায় না। একটা বড় রাজনৈতিক দল, এখানে এতটা পারা যায় না। তবে এবার কঠোর সিদ্ধান্তের কারণে বিদ্রোহ অনেকটাই কমেছে।

‘ঐ অর্থে এবার বিদ্রোহ অনেকটাই কম। সেটা তো একটা ভালো দিক। এতে আগামী দিনে আরো সুদুরপ্রসারী, ভালো ফল পাওয়া যাবে। এরই মধ্যে আমরা শুরু করেছি। আগামীতে আরও পাব।’

আরও পড়ুন: শায়েস্তাগঞ্জে আ. লীগে তিন বিদ্রোহী

তিনি বলেন, কঠোর সিদ্ধান্তের পরেও সব ক্ষেত্রে রাজনৈতিক দলে শতভাগ বিদ্রোহ দমন করা যায় না।

তৃণমুলে বিদ্রোহে কেন্দ্রীয় নেতাদের মদদ থাকলে তাদের বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নেয়ার কথা জানান আওয়ামী লীগের এ কেন্দ্রীয় নেতা।

গত ২ ডিসেম্বর সারাদেশে দ্বিতীয় ধাপে ৬১ পৌরসভা নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করে নির্বাচন কমিশন। তফসিল অনুযায়ী ১৬ জানুয়ারি হবে ভোট। এর মধ্যে ২৯ পৌরসভার ভোট হবে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন বা ইভিএমের মাধ্যমে। আর ৩২টিতে ভোট হবে ব্যালটে।

আরও পড়ুন:
কমলগঞ্জে আওয়ামী লীগ ত্রিখণ্ড, ফুরফুরে বিএনপি
আ. লীগের দুশ্চিন্তায় বিদ্রোহ, বিএনপির প্রতিদ্বন্দ্বী জামায়াত
বিএনপির মেয়র প্রার্থীসহ চার কাউন্সিলর প্রার্থীকে শোকজ

শেয়ার করুন

মন্তব্য