মূল্য ছাড়, উপহারে জমে উঠেছে স্মার্টফোন ও ট্যাবের মেলা

player
মূল্য ছাড়, উপহারে জমে উঠেছে স্মার্টফোন ও ট্যাবের মেলা

রাজধানীতে তিন দিনের স্মার্টফোন অ্যান্ড ট্যাব এক্সপোতে দর্শনার্থীদের ভিড়। ছবি: সংগৃহীত

মেকার কমিউনিকেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মুহম্মদ খান বলেন, ‘দীর্ঘ একটা বিরতির পরে এ মেলার আয়োজনে দর্শকদের উপস্থিতিতে আমরা খুবই আনন্দিত। আশা করছি দর্শকরা নিজেদের পছন্দের স্মার্টফোন কেনার পাশাপাশি সরাসরি ৫জি অভিজ্ঞতা নেবেন। তিন দিনের এ মেলা চলবে আগামী ৮ জানুয়ারি পর্যন্ত।’

স্মার্টফোন আর ট্যাবে মূল্য ছাড়, উপহার দেয়ায় জমজমাট হয়ে উঠেছে দ্বিতীয় দিনের স্মার্টফোন অ্যান্ড ট্যাব মেলা।

রাজধানীর আগারগাঁওয়ে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে (বিআইসিসি) শুক্রবার দ্বিতীয় দিনে সকাল থেকেই ছিল নানা বয়সী প্রযুক্তিপ্রেমীদের ভিড়।

লাইন ধরে স্বাস্থ্যসুরক্ষা মেনে মেলায় প্রবেশ করেন দর্শকরা।

বিভিন্ন অফার ও আকর্ষণীয় উপহার সামগ্রীর বিষয়গুলো আকর্ষণ করেছে দর্শকদের।

এবারের মেলায় বিভিন্ন ব্র্যান্ডের মোবাইল কোম্পানিগুলো ৪ হাজার থেকে শুরু করে সর্বোচ্চ ৫০ হাজার টাকা পর্যন্ত দিচ্ছে বিশেষ মূল্য ছাড়।

মূল্য ছাড়ের পাশাপাশি মোবাইল কিনে পাওয়া যাচ্ছে লটারি এবং পুরস্কার হিসেবে থাকছে ৩২ ইঞ্চি টেলিভিশনসহ নানা উপহার।

স্মার্ট সব ডিভাইসের সঙ্গে শীতের জ্যাকেট, টি-শার্ট, সোয়েটার, কফিমগসহ নানা ধরনের উপহার রয়েছে।

মেলায় পরিবারসহ ঘুরতে আসা বেসরকারী চাকরিজীবী মইনুল হাসান বলেন, ‘যেহেতু বন্ধের দিন তাই পুরো পরিবারসহ এসেছি। মেলায় আসলে নানা ধরনের স্মার্টফোন এক জায়গায় দেখার সুযোগ মেলে এবং মূল্যছাড়ও পাওয়া যায়। সে চিন্তা থেকেই আসা। ভালো লেগেছে মেলায় ঘুরে।’

মেলায় অপোর স্টলে নির্দিষ্ট মোবাইলের উপর নির্দিষ্ট মূল্যছাড় রয়েছে। যে কেউ চাইলে লটারিতে অংশ নিয়ে পেতে পারেন নানা পুরস্কারও। লটারিতে জিতে নিতে পারবেন অপো মোবাইল ফোন।

মেলায় ভিভোর স্টল থেকে মোবাইল কিনলে দেয়া হচ্ছে লটারি। লটারিতে রয়েছে আকর্ষণীয় সব পুরস্কার। ভাগ্যবান ক্রেতা পেয়ে যেতে পারেন ৩২ ইঞ্চি এলইডি টিভি।

এ ছাড়া মেলায় রিয়েলমির যেকোনো মোবাইল ফোন কিনলে পাওয়া যাচ্ছে বিশেষ ছাড়। দেওয়া হচ্ছে তিন থেকে চার হাজার টাকা মূল্য ছাড় সুবিধা।

এ ছাড়া রয়েছে বিভিন্ন ধরনের উপহার।মেলায় এবার প্রথম সরাসরি ৫জি প্রযুক্তি সুবিধা ব্যবহারের সুযোগ পাচ্ছেন দর্শকরা। টেলিটক বাংলাদেশের স্টলে মোবাইল ফোনেই দ্রুতগতি দেখার পাশাপাশি ৫জি প্রযুক্তিতে চলা ভিআর গেমস সরাসরি ‍উপভোগেরও সুযোগ থাকছে সবার জন্য।

মেলায় টেকনো ফোনে ফোন কিনলে পাওয়া যাচ্ছে ১০ শতাংশ মূল্য ছাড় ও সঙ্গে থাকছে উপহার।

ওয়ান প্লাসের মোবাইল কিনলে ৫ হাজার টাকা পর্যন্ত মূল্য ছাড়ের পাশাপাশি অ্যাক্সেসরিজে পাওয়া যাচ্ছে ২০ শতাংশ ছাড়।

মেলার শাওমি ফোন কিনলে পাওয়া যাবে ৪ হাজার টাকা পর্যন্ত ছাড়। সঙ্গে উপহার।

স্যামসাং মোবাইলে পাওয়া যাবে সর্বোচ্চ ৫০ হাজার টাকা ছাড়।

দ্বিতীয় দিনে অপোর একটি স্মার্টফোন উদ্বোধন করেন ক্রিকেটার সাকিব আল হাসান।

মেলার আয়োজক মেকার কমিউনিকেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মুহম্মদ খান বলেন, ‘দীর্ঘ একটা বিরতির পরে এ মেলার আয়োজনে দর্শকদের উপস্থিতিতে আমরা খুবই আনন্দিত। আশা করছি দর্শকরা নিজেদের পছন্দের স্মার্টফোন কেনার পাশাপাশি সরাসরি ৫জি অভিজ্ঞতা নেবেন। তিন দিনের এ মেলা চলবে আগামী ৮ জানুয়ারি পর্যন্ত।’

আয়োজকদের পক্ষ থেকে জানানো হয়, মেলায় দর্শকরা ঢুকতে পারবেন বিনামূল্যে। তবে মাস্ক না পরা অবস্থায় কেউ মেলায় প্রবেশ করতে পারবেন না। প্রবেশপথে তাপমাত্রা মেপে তা গ্রহণযোগ্য হলেই প্রবেশ করা যাবে মেলায়।

আরও পড়ুন:
রাজধানীতে স্মার্টফোন ও ট্যাব মেলা বৃহস্পতিবার থেকে

শেয়ার করুন

মন্তব্য

মাত্র ১৭ মিনিটে শতভাগ চার্জ হবে যে ফোন

মাত্র ১৭ মিনিটে শতভাগ চার্জ হবে যে ফোন

শাওমির ইলেভেন-টি প্রো ফোনটি ৭২% চার্জ হয় ১০ মিনিটে, ১০০% চার্জ দিতে সময় লাগে ১৭ মিনিট। ছবি: সংগৃহীত

এ প্রযুক্তিতে মাত্র ১৭ মিনিটে ফোনটিতে থাকা ৫০০০ এমএএইচ ব্যাটারি শতভাগ চার্জ করা যাবে। জিএসএমএরিনার তথ্যে বলা হয়, ফোনটির ফাস্ট চার্জিং সুবিধায় মাত্র ১০ মিনিটে চার্জ হবে ৭২ শতাংশ ব্যাটারি।

কাজ, বিনোদন, গেমিং কিংবা সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ঢুঁ- সবকিছুর মূলে এক কথা, ফোনে থাকতে হবে চার্জ। আর অবশ্যই সেই চার্জের জন্য বেশি সময় ব্যয় করা যাবে না।

হাতের স্মার্টফোনটি যেন খুব অল্প সময়ের মধ্যে শতভাগ চার্জ করা যায় সে প্রযুক্তির উন্নতিতে বিভিন্ন ব্যান্ড কাজ করছে। জোর দিচ্ছে ফাস্ট চার্জিং প্রযুক্তির অত্যাধুনিক সব উপায় উদ্ভাবনে।

অবশ্য এরই মধ্যে শাওমি, অপো, ভিভো, স্যামসাং প্রায় সব ব্র্যান্ডই বিষয়টিতে অনেক এগিয়েছে। বাজারে নিয়ে এসেছে ফাস্ট চার্জিংয়ের ডিভাইস। এ ক্ষেত্রে সবচেয়ে এগিয়ে আছে চীনা ব্র্যান্ড শাওমি। তারা বাজারে ছেড়েছে ১২০ ওয়াটের হাইপারচার্জ প্রযুক্তির ফোন। যাতে মাত্র ১৭ মিনিটেই ব্যাটারি চার্জ হবে শতভাগ।

ফোনটির মডেল হচ্ছে শাওমি ইলেভেন-টি প্রো। দেশের বাজারে শাওমির এটাই প্রথম ফোন, যাতে ১২০ ওয়াটের শাওমি হাইপার চার্জ প্রযুক্তি রয়েছে। শাওমির দাবি- এ প্রযুক্তিতে মাত্র ১৭ মিনিটে ফোনটিতে থাকা ৫০০০ এমএএইচ ব্যাটারি শতভাগ চার্জ করা যাবে।

জিএসএমএরিনার তথ্যে বলা হয়, ফোনটির ফাস্ট চার্জিং সুবিধায় মাত্র ১০ মিনিটে চার্জ হবে ৭২ শতাংশ ব্যাটারি।

ডিভাইসটিতে থাকা ৫০০০ এমএএইচের ব্যাটারিও দীর্ঘ ব্যাকআপ দেবে বলে জানিয়েছে শাওমি। বাজারে স্মার্টফোনটি উন্মোচনের পর প্রতিষ্ঠানটি জানায়, এটি একবার চার্জে চিন্তা ছাড়াই দেড় দিন ব্যবহার করতে পারবেন ব্যবহারকারীরা।

ইলেভেন-টি প্রো ডিভাইসটিতে কোয়ালকমের স্ন্যাপড্রাগন ৮৮৮ প্রসেসর দেয়া হয়েছে। চিপসেটটি তৈরি করা হয়েছে অত্যাধুনিক ৫ ন্যানোমিটার প্রযুক্তিতে, যা ব্যবহারকারীদের কম শক্তি খরচে উচ্চ পারফরম্যান্স নিশ্চিত করবে।

ফোনটিতে আছে ১০৮ মেগাপিক্সেলের প্রো-গ্রেডের স্ট্যানিং ট্রিপল ক্যামেরা। স্মার্টফোনটিতে এক ক্লিকেই এআই সিনেমা মোড, ৮-কে রেকর্ডিং এবং এইচডিআর১০ প্লাসসহ ফিল্মগ্রাফির সক্ষমতা রয়েছে।

৬.৬৭ ইঞ্চির এফএইচডি ১২০ হার্জ অ্যামোলেড ফ্ল্যাট ডিসপ্লের ফোনটির ৮+২৫৬ জিবি ভ্যারিয়েন্টের দাম ৬৪ হাজার ৯৯৯ টাকা।

আরও পড়ুন:
রাজধানীতে স্মার্টফোন ও ট্যাব মেলা বৃহস্পতিবার থেকে

শেয়ার করুন

যে কারণে দাম হারাচ্ছে বিটকয়েন

যে কারণে দাম হারাচ্ছে বিটকয়েন

বিটকয়েনের দরপতনের আঘাত লেগেছে বাকি ক্রিপ্টোকারেন্সিগুলোতেও। ছবি: সংগৃহীত

ঝুঁকিপূর্ণ সম্পদ বিবেচনায় ক্রমাগত দাম হারাচ্ছে বিটকয়েন। সর্বশেষ ২৪ ঘণ্টায় বিটকয়েনের দাম কমেছে ৮.৮ শতাংশ। বর্তমানে কারেন্সিটির দাম ৩৩ হাজার ডলার। অথচ গত নভেম্বরেও এর দাম ছিল ৬৯ হাজার ডলার।

ইউক্রেন সীমান্তে সেনা জড়ো করেছে রাশিয়া। যে কোনো সময় ইউক্রেনে আক্রমণ করে বসতে পারে দেশটি- এমন আশঙ্কার কথা ব্যক্ত করছে খোদ ইউক্রেন। আর ইউরোপে নতুন করে যুদ্ধের আশঙ্কা করছে পোল্যান্ড।

এক্সপ্রেস ট্রিবিউনের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ইউক্রেনে সৃষ্ট অস্থিরতা ও যুদ্ধের আশঙ্কা প্রভাব ফেলেছে ক্রিপ্টোকারেন্সির দামে। হু হু করে দাম হারাচ্ছে কারেন্সিগুলো।

রাশিয়ার সঙ্গে উত্তেজনা যুদ্ধের মোড় নিতে পারে। পশ্চিমাদের সঙ্গে দুই ধাপে আলোচনা করার পরও কোনো সমাধান আসেনি।

যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র দপ্তর রোববার বলেছে, কূটনীতিকদের পরিবারের সদস্যদের ইউক্রেন ছেড়ে যাওয়ার নির্দেশ দিয়েছে দেশটি। দূতাবাসের অনেক কর্মীকে সরিয়ে নিচ্ছে যুক্তরাজ্যও। ন্যাটোর ধারণা, যে কোনো সময় আক্রমণ করতে পারে রাশিয়া।

এমন পরিস্থিতিতে দাম বেড়েছে তেল ও ডলারের। কমেছে ঝুঁকিপূর্ণ সম্পদের দাম। তাই বিশ্বব্যাপী শেয়ারবাজারে দরপতন ঘটছে।

ঝুঁকিপূর্ণ সম্পদ বিবেচনায় ক্রমাগত দাম হারাচ্ছে বিটকয়েন। সর্বশেষ ২৪ ঘণ্টায় বিটকয়েনের দাম কমেছে ৮.৮ শতাংশ। বর্তমানে কারেন্সিটির দাম ৩৩ হাজার ডলার। অথচ গত নভেম্বরেও এর দাম ছিল ৬৯ হাজার ডলার।

বিটকয়েনের দরপতনের আঘাত লেগেছে বাকি ক্রিপ্টোকারেন্সিগুলোতেও। ক্রমাগত দাম হারাচ্ছে প্রতিষ্ঠিত কারেন্সিগুলো।

দ্বিতীয়-বৃহৎ ক্রিপ্টোকারেন্সি ইথারিয়ামের দাম ১৩ শতাংশ কমে ২ হাজার ২০২ ডলারে দাঁড়িয়েছে, যা ২৭ জুলাইয়ের পর সর্বনিম্ন। বাইনান্স কয়েনের দাম কমেছে ১২ শতাংশ।

ডজকয়েন, শিবা ইনু, ফ্লোকি ইনু, আকিতা ইনুর মতো মিম কয়েনগুলোও ক্রমাগত দাম হারাচ্ছে। ডজকয়েন, ফ্লোকি ইনু নিয়ে ইলন মাস্কের টুইটেও দামের খুব একটা হেরফের হয়নি।

ক্রিপ্টোকারেন্সি ও সাইড চেইনের প্ল্যাটফর্ম হরাইজনের প্রধান মার্ক এলেনোভিটস বলেন, ‘সামষ্টিক অর্থনীতির পরিবর্তন না হওয়া পর্যন্ত বিটকয়েনের অবস্থার কোনো পরিবর্তন হবে না।’

তাই ইউক্রেন পরিস্থিতি শিগগিরই স্বাভাবিক না হলে বিটকয়েনসহ ক্রিপ্টোকারেন্সির দাম ঊর্ধ্বমুখী হওয়ার সম্ভাবনা কম।

আরও পড়ুন:
রাজধানীতে স্মার্টফোন ও ট্যাব মেলা বৃহস্পতিবার থেকে

শেয়ার করুন

৩৩ ওয়াট ফাস্ট চার্জারের টেকনো স্পার্ক ৮ প্রো

৩৩ ওয়াট ফাস্ট চার্জারের টেকনো স্পার্ক ৮ প্রো

ইমার্সিভ ডিসপ্লে এক্সপেরিয়েন্স নিশ্চিত করতে ফোনটিতে রয়েছে ৬.৮ ইঞ্চির ১০৮০ পিক্সেল এফএইচডি প্লাস ডিসপ্লে, সাইড-মাউন্টেড ফিঙ্গারপ্রিন্ট। দেয়া হয়েছে হেলিও জি৮৫ প্রসেসর।

দেশের বাজারে স্পার্ক ৮ প্রোর স্মার্টফোনের নতুন সংস্করণ বাজারে ছেড়েছে টেকনো।

এফএইচডি প্লাস ডিসপ্লে ও ৩৩ ওয়াট ফাস্ট চার্জার দেয়া হয়েছে নতুন সংস্করণে। সেই সঙ্গে বাড়ানো হয়েছে র‍্যাম।

স্মার্টফোনটি অনন্য ডিসপ্লে অভিজ্ঞতা ও পাওয়ার বুস্ট গেমিং পারফরম্যান্সের পাশাপাশি একটি ফ্যাশন স্টেটমেন্ট হিসেবে কাজ করবে বলে জানিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি।

ইমার্সিভ ডিসপ্লে এক্সপেরিয়েন্স নিশ্চিত করতে ফোনটিতে রয়েছে ৬.৮ ইঞ্চির ১০৮০ পিক্সেল এফএইচডি প্লাস ডিসপ্লে, সাইড-মাউন্টেড ফিঙ্গারপ্রিন্ট। দেয়া হয়েছে হেলিও জি৮৫ প্রসেসর।

৪ জিবি র‍্যাম ও ৬৪ জিবি ইন্টারনাল স্টোরেজ রয়েছে ডিভাইসটিতে। স্পার্ক ৮ প্রো সিরিজের আগের ফোনের মতো এতেও আছে ৪৮ মেগাপিক্সেল আলট্রা ক্লিয়ার এআই ট্রিপল ক্যামেরা, সুপার নাইট মোড ২.০, মাল্টি-ফ্রেম ১০এক্স জুম, এআর শটস।

ব্যবহারকারীদের দীর্ঘ ব্যাকআপ ও দ্রুত চার্জিং সুবিধা দিতে রয়েছে ৫০০০ এমএএইচ ব্যাটারি ও ৩৩ ওয়াট ইউএসবি টাইপ-সি ফাস্ট চার্জার।

টেকনো মোবাইল বাংলাদেশের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) রেজওয়ানুল হক বলেন, ‘তরুণ প্রজন্মের চাহিদার কথা মাথায় রেখেই আমরা টেকনো স্পার্ক ৮ প্রো-এর নতুন ভার্সন বাজারে এনেছি। আকর্ষণীয় কালার, ডিজাইন ও ফিচারের জন্য নিঃসন্দেহে এটি ব্যবহারকারীদের পছন্দের তালিকার শীর্ষে থাকবে।’

ইন্টারস্টেলার ব্ল্যাক ও কমোডো আইল্যান্ড দুটি কালারে ১৫ হাজার ৪৯০ টাকায় পাওয়া যাচ্ছে ফোনটি।

আরও পড়ুন:
রাজধানীতে স্মার্টফোন ও ট্যাব মেলা বৃহস্পতিবার থেকে

শেয়ার করুন

শাওমির মিইউআই ১৩, যত নতুন ফিচার

শাওমির মিইউআই ১৩, যত নতুন ফিচার

মিইউআই ১৩ এ দিন চীনের পাশাপাশি বিশ্বের সব দেশের জন্যই উন্মোচন করা হবে। প্রথম অবস্থায় এটি শাওমির রেডমি নোট ১০, নোট ১০ প্রো, মি ইভেলেন লাইট ফোনের দিচ্ছে মিইউআই ১৩।

চীনা প্রযুক্তি জায়ান্ট শাওমি তাদের নিজস্ব মোবাইল ইন্টারফেস মিইউআই ১৩ সংস্করণের ঘোষণা অনেক আগেই দিয়েছিল। আগামীকাল বুধবার শাওমি নোট ১১ সিরিজ উন্মোচনের দিনেই মিইউআই ১৩ উন্মোচন করতে যাচ্ছে প্রতিষ্ঠানটি।

অ্যান্ড্রয়েড ১২ সংস্করণের ওপর তৈরি মিইউআই ১৩ সংস্করণে থাকছে ব্যবহারকারীদের জন্য বেশকিছু নতুন ফিচার।

মিইউআই ১৩ এ দিন চীনের পাশাপাশি বিশ্বের সব দেশের জন্যই উন্মোচন করা হবে। প্রথম অবস্থায় এটি শাওমির রেডমি নোট ১০, নোট ১০ প্রো, মি ইভেলেন লাইট ফোনে দিচ্ছে মিইউআই ১৩।

এ ছাড়া মি ১১এক্স, পোকো এক্স৩ প্রোসহ পোকো এফ৩ মডেলেও শিগগির মিইউআই ১৩ রিলিজ করা হবে বলে বিভিন্ন মাধ্যমে খবর পাওয়া যাচ্ছে।

উন্মোচনের পরপরই এটি চলে আসবে বেশ কয়েকটি স্মার্টফোনে। যাতে থাকবে অসংখ্য নতুন ফিচার।

এসব ফিচারের মধ্যে আরও উন্নত করা হয়েছে ইউজার ইন্টারফেস, অপ্টিমাইজ করা হয়েছে অ্যানিমেশন।

আরও যেসব ফিচার থাকছে মিইউআই ১৩ সংস্করণে

এনহেন্সড টাচ সেন্সিটিভিটি

ইমপ্রুভ স্ক্রলিং স্ক্রিনশট

ন্যাটিভ স্ক্রিন রেকর্ডিং সাপোর্ট

নতুন থিম ডিজাইন ও ইমপ্রুভড জেশ্চার

এনহেন্সড অলওয়েজ অন ডিসপ্লে

এয়ারপ্লেন মোড শিডিউল ফিচার

সোশ্যাল মিডিয়ার জন্য ইমপ্রুভড নোটিফিকেশন প্যানেল

ফাস্ট চার্জিং ইম্প্রুভমেন্ট

ফ্লেক্সিবল স্টোরেজ এক্সপেরিয়েন্স

ব্যাটারি পারফরম্যান্স বাড়াতে নতুন পাওয়ার সেভিং মোড

নতুন ও পুরোনো নোটিফিকেশন ম্যানেজ করতে এনহেন্সড নোটিফিকেশন সিস্টেম

আরও পড়ুন:
রাজধানীতে স্মার্টফোন ও ট্যাব মেলা বৃহস্পতিবার থেকে

শেয়ার করুন

প্রযুক্তির সবুজ রূপান্তরে টেলিনরের ৫ পূর্বাভাস

প্রযুক্তির সবুজ রূপান্তরে টেলিনরের ৫ পূর্বাভাস

রাজধানীর বারিধারায় জিপি হাউজে সোমবার আয়োজিত অনুষ্ঠানে আলোচক ও অতিথিরা। ছবি: নিউজবাংলা

টেলিনর বলছে- দ্রুতই গ্রিন ক্লাউডের ব্যাপক প্রসার ঘটবে, জলবায়ু বিষয়ে মাইক্রো ডিগ্রির চাহিদা বাড়বে, সবকিছুর অপটিমাইজেশন বা সর্বোত্তম ব্যবহার গুরুত্ব পাবে, সবুজায়ন বিষয়ে আন্দোলন বা গ্রিন-ইনফ্লুয়েন্সার কর্মকাণ্ড বাড়বে এবং ‘লস্ট জেনারেশন’ বা পরবর্তী প্রজন্মের উপযোগী অফিস ব্যবস্থাপনা গড়ে উঠবে। আর কোম্পানিগুলো এই খাতে বড় অংকের বিনিয়োগ করবে।

প্রযুক্তি ও ডিজিটালাইজেশনে গ্রিন ট্রান্সফরমেশনকে (সবুজ রূপান্তর) সক্ষম করে তুলতে পাঁচটি ভবিষ্যৎ প্রযুক্তির পূর্বাভাস দিয়েছে টেলিনর। আগামী দিনের প্রযুক্তি খাতে পরিবর্তন নিয়ে টেলিনরের ‘টেক ট্রেন্ডস ২০২২’ প্রতিবেদনে এসব বিষয়ের ওপর গুরুত্ব দেয়া হয়েছে।

রাজধানীর বারিধারায় জিপি হাউজে সোমবার আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে টেলিনরের গবেষণা থেকে প্রাপ্ত ফল প্রকাশ করে গ্রামীণফোন। টেলিনর গ্রুপের সায়েন্টিফিক রিসার্চ ইউনিট ‘টেলিনর রিসার্চ’ প্রযুক্তি নিয়ে গবেষণালব্ধ এসব পূর্বাভাস দিয়েছে।

টেলিনর বলছে- দ্রুতই গ্রিন ক্লাউডের ব্যাপক প্রসার ঘটবে, জলবায়ু বিষয়ে মাইক্রো ডিগ্রির চাহিদা বাড়বে, সবকিছুর অপটিমাইজেশন বা সর্বোত্তম ব্যবহার গুরুত্ব পাবে, সবুজায়ন বিষয়ে আন্দোলন বা গ্রিন-ইনফ্লুয়েন্সার কর্মকাণ্ড বাড়বে এবং ‘লস্ট জেনারেশন’ বা পরবর্তী প্রজন্মের উপযোগী অফিস ব্যবস্থাপনা গড়ে উঠবে। আর কোম্পানিগুলো এই খাতে বড় অংকের বিনিয়োগ করবে।

তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমদ পলক প্রধান অতিথি হিসেবে ভার্চুয়াল মাধ্যমে অনুষ্ঠানে অংশ নেন।

গ্রামীণফোনের প্রধান নির্বাহী ইয়াসির আজমান, বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনের মহাপরিচালক (সিস্টেমস অ্যান্ড সার্ভিসেস) ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো. নাসিম পারভেজ; বিকাশের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা কামাল কাদীর, বেলা’র প্রধান নির্বাহী সৈয়দা রিজওয়ানা হাসান এবং পল্লী কর্মসহায়ক ফাউন্ডেশনের (পিকেএসএফ) চেয়ারম্যান ড. কাজী খলীকুজ্জমান আহমদ অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।

টেলিনরের পূর্বাভাস তুলে ধরে টেলিনর রিসার্চের প্রধান বিওন তালে স্যান্ডবার্গ ভার্চুয়ালি মূল বক্তব্য দেন। তিনি বলেন- নতুন যুগের উন্নত কানেক্টিভিটি, জলবায়ু-বান্ধব শক্তি-সাশ্রয়ী আধুনিক হার্ডওয়্যার, এজ ক্লাউড ও ফাইভ-জি প্রযুক্তি আরো পরিবেশ-বান্ধব হবে। তা প্রতিষ্ঠানগুলোর গ্রিন জব স্কিলসের চাহিদা এবং ডিজিটাল লার্নিং প্ল্যাটফর্মগুলোর ক্লাইমেট মাইক্রো ডিগ্রি দেয়ার বিষয়গুলোকে বাড়িয়ে তুলবে।

একইসঙ্গে প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে শক্তি-সাশ্রয়ী ও পরিবেশ-বান্ধব ডিভাইস তৈরির প্রবণতা ও প্রতিযোগিতা বাড়বে। তরুণদের মাঝে সামাজিক মাধ্যমে জলবায়ু সচেতন ইনফ্লুয়েন্সারের সংখ্যা ও জনপ্রিয়তা বাড়বে। কারণ, সম্ভাব্য ঝুঁকি প্রশমনের মাধ্যমে ভবিষ্যৎ প্রজন্ম ও জলবায়ু বিষয়ক সচেতন ব্যক্তিদের প্রত্যাশা পূরণে এটি গুরুত্বপূর্ণ।

আগামী প্রজন্মের প্রত্যাশাকে গুরুত্ব দিয়ে ‘গ্রেট রেসিগনেশন’-এর সম্ভাব্য ঝুঁকি এড়ানো এবং বৈশ্বিক মহামারি শেষে ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠানগুলো কিভাবে এ ঝুঁকি এড়িয়ে যেতে পারবে, তা নিয়ে প্রতিবেদনে পরামর্শ দেয়া হয়েছে।

‘সার্ভার ও অ্যাপ্লিকেশন ভিত্তিক কোনো কিছুর ডিজাইন করার সময় সবুজায়নের বিষয়ে গুরুত্ব দিতে হবে। একইসঙ্গে ব্যবহারকারীরা তাদের দৈনন্দিন জীবনে কিভাবে এগুলোর প্রয়োগ ঘটাতে পারে তা নিয়ে প্রয়োজনীয় প্রশিক্ষণ দিতে হবে। বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে এ বিষয়গুলোকে মূল পাঠ্য হিসেবে বিবেচনা করতে হবে।’

জুনাইদ আহমেদ পলক বলেন, ‘চতুর্থ শিল্প-বিপ্লবের প্রযুক্তি অনুসারে আমরা সারা দেশে আইটি প্রশিক্ষণ কেন্দ্র ও ল্যাব এবং ডিজিটাল লিডারশিপ অ্যাকাডেমিসহ অনেক ডিজিটাল অবকাঠামো ও সেবা চালু করেছি। এছাড়াও তরুণদের জন্য, বিশেষ করে ষষ্ঠ থেকে দ্বাদশ শ্রেণির জন্য শেখ হাসিনা ইনস্টিটিউট অব ফ্রন্টিয়ার টেকনোলজি নির্মাণ করা হচ্ছে।’

ড. কাজী খলীকুজ্জমান আহমদ বলেন, ‘জলবায়ু পরিবর্তনে বাংলাদেশের মতো দেশগুলো নানামুখী ক্ষতির মুখে পড়ছে। পরিবেশ-বান্ধব পদক্ষেপের মাধ্যমে এ পরিস্থিতির উন্নতি সম্ভব। জলবায়ু পরিবর্তনে সচেতনতামূলক পদক্ষেপ নিতে হবে। শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও ট্রেনিং সেন্টারকে ক্লাইমেট মাইক্রো ডিগ্রি ও কোর্সের ব্যাপারে নজর দিতে হবে। কীভাবে প্রযুক্তি ব্যবহার করে জলবায়ু সংক্রান্ত সমস্যা সমাধানে কাজ করা যায় কোর্সগুলোর মাধ্যমে মানুষ তা শিখতে পারবে।’

ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো. নাসিম পারভেজ তার বক্তব্যে চারটি বিষয়ে আলোকপাত করেন। বিষয়গুলো হলো- জ্বালানি সাশ্রয়, সাইট লেভেল ইনোভেশন, আরএএন (রেডিও অ্যাকসেস নেটওয়ার্ক) ও নেটওয়ার্ক ইক্যুইপমেন্ট ইনোভেশন এবং উন্নত নেটওয়ার্ক পরিকল্পনা ও অপটিমাইজেশন।

তিনি বলেন, ‘টেক ট্রেন্ডস থেকে প্রাপ্ত ফল নিয়ে কাজ করতে কিংবা এগুলোর বিকাশে কীভাবে একসঙ্গে কাজ করা যায় তা নিয়ে কৌশল খুঁজে বের করতে হবে। আমরা ফাইভ-জি নীতিমালা নিয়ে কাজ করছি। অপারেটরদের পরামর্শও নিচ্ছি।’

কামাল কাদীর বলেন, ‘সার্ভার ও অ্যাপ্লিকেশন ভিত্তিক কোনো কিছুর ডিজাইন করার সময় সবুজায়নের বিষয়ে গুরুত্ব দিতে হবে। একইসঙ্গে ব্যবহারকারীরা তাদের দৈনন্দিন জীবনে কিভাবে এগুলোর প্রয়োগ ঘটাতে পারে তা নিয়ে প্রয়োজনীয় প্রশিক্ষণ দিতে হবে। বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে এ বিষয়গুলোকে মূল পাঠ্য হিসেবে বিবেচনা করতে হবে।’

সৈয়দা রিজওয়ানা হাসান বলেন, ‘ই-বর্জ্য পরিবেশের ক্ষতির অন্যতম কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। এর ঝুঁকি ও করণীয় সম্পর্কে মানুষ সঠিকভাবে জানে না। প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানগুলোকে নতুন ডিজাইন বাজারে আনার চেয়ে পরিবেশ রক্ষায় পণ্যের স্থায়িত্বের ওপর বিশেষ গুরুত্ব দিতে হবে। নেটওয়ার্ক টাওয়ারের বিকিরণ যাতে মানুষের স্বাস্থ্যের ক্ষতির কারণ না হয় সে ব্যাপারে টেলিকম প্রতিষ্ঠানগুলোকে সচেতন হতে হবে।’

ইয়াসির আজমান বলেন, ‘চরম জলবায়ুজনিত বিভিন্ন সমস্যা আমাদের টেকসই অর্থনীতির লক্ষ্য বাধাগ্রস্ত করছে। এখন আমাদের লক্ষ্য হচ্ছে, জলবায়ু-বান্ধব কৌশল গ্রহণ করা, যা সবুজে রূপান্তরের মাধ্যমে ভবিষ্যৎকে সুরক্ষিত রাখবে।

‘এ বছর প্রযুক্তি সংক্রান্ত অনুমান দেখিয়েছে, কিভাবে প্রযুক্তি ও ডিজিটালাইজেশন ডেটা স্থানান্তরকে আরো দক্ষ, সহজ এবং ডিভাইসগুলোকে আরও পরিবেশবান্ধব ও অপটিমাইজ করে তুলবে। একইসঙ্গে ডিজিটাল মাইক্রো ডিগ্রি ও গ্রিন ইনফ্লুয়েন্সারগুলোর মাধ্যমে জলবায়ুতে ইতিবাচক পরিবর্তন আনতে পারে। ভাল নেতৃত্বের অনুশীলনের বিষয়টি নিশ্চিত করতে হবে, যাতে পরবর্তী প্রজন্মের কর্মীরা তাদের কর্মক্ষেত্রে উন্নতি লাভ করতে পারে।’

আরও পড়ুন:
রাজধানীতে স্মার্টফোন ও ট্যাব মেলা বৃহস্পতিবার থেকে

শেয়ার করুন

অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রীর উইচ্যাট অ্যাকাউন্ট বেহাত

অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রীর উইচ্যাট অ্যাকাউন্ট বেহাত

স্কট মরিসন। ছবি: সংগৃহীত

কয়েক মাস ধরে তার উইচ্যাট অ্যাকাউন্টের নিয়ন্ত্রণ নেই। এই অ্যাকাউন্ট এখন চীনের কেউ চালাচ্ছেন।

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম উইচ্যাটের অ্যাকাউন্টে ঢুকতে পারছেন না অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রী স্কট মরিসন।

চীনের এই যোগাযোগমাধ্যমে তার যে অ্যাকাউন্ট রয়েছে তা এখন অন্য কেউ নিয়ন্ত্রণে নিয়েছেন বলে সোমবার এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স।

মরিসনের দল লিবারেল পার্টির নেতারা জানিয়েছেন, কয়েক মাস ধরে তার উইচ্যাট অ্যাকাউন্টের নিয়ন্ত্রণ নেই। এই অ্যাকাউন্ট এখন চীনের কেউ চালাচ্ছেন।

অস্ট্রেলিয়া চীনা নাগরিকদের জীবনযাপন প্রক্রিয়া নিয়ে নানা তথ্য এই অ্যাকাউন্ট থেকে এখন প্রচার করা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন তারা।

চীনের সঙ্গে চলা কূটনৈতিক উত্তেজনার মধ্যই অস্ট্রেলিয়ার প্রধান দুই রাজনৈতিক দল ২০১৯ সাল থেকে নিবাচনি কাজে চীনের যোগাযোগমাধ্যম উইচ্যাট ব্যবহার করে আসছে। চীনে থাকা অস্ট্রেলিয়ার নাগরিকদের লক্ষ্য করে এই প্রচার চালানো হয়।

আসন্ন মে মাসের জাতীয় নির্বাচন ঘিরে মরিসনের অ্যাকাউন্ট থেকে বিভিন্ন নীতি প্রচারণার প্রস্তুতি নিচ্ছে তার দল। এমন অবস্থায় অ্যাকাউন্ট ফিরে পেতে জানুয়ারিতে বেশ কয়েকবার অনুরোধ করা হয়েছে।

তবে এতে সাড়া মেলেনি বলে জানিয়েছেন নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক সংশ্লিষ্ট একজন। এ ব্যাপারে উইচ্যাট কর্তৃপক্ষের কোনো মন্তব্য পাওয়া যায়নি।

আরও পড়ুন:
রাজধানীতে স্মার্টফোন ও ট্যাব মেলা বৃহস্পতিবার থেকে

শেয়ার করুন

মোবাইল ইন্টারনেটের ধীরগতি নিয়ে হাইকোর্টের কমিটি

মোবাইল ইন্টারনেটের ধীরগতি নিয়ে হাইকোর্টের কমিটি

রোববার বিচারপতি মামনুন রহমান ও বিচারপতি খোন্দকার দিলীরুজ্জামানের হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেয়।

কল ড্রপের ভোগান্তি দূর করে স্বচ্ছ ভয়েস কল, দ্রুতগতির ইন্টারনেট এবং স্থিতিশীল মোবাইল নেটওয়ার্ক ও ইন্টারনেট সেবা নিশ্চিত করতে দেশের মোবাইল ফোন অপারেটরগুলোকে নির্দেশ দিয়েছে হাইকোর্ট।

একইসঙ্গে মোবাইল নেটওয়ার্ক, মোবাইল ইন্টারনেট সংক্রান্ত সমস্যা এবং গ্রাহকদের অভিযোগ দ্রুত সমাধানে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ রেগুলেটরি কমিশনের (বিটিআরসি) ‘অভিযোগ সেলে’র কার্যক্রম পর্যবেক্ষণে পাঁচ সদস্যের একটি কমিটি করে দিয়েছে আদালত।

রোববার এ সংক্রান্ত এক রিট আবেদনের প্রাথমিক শুনানি নিয়ে বিচারপতি মামনুন রহমান ও বিচারপতি খোন্দকার দিলীরুজ্জামানের হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেয়।

আদালত আদেশে ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগ এবং তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের সচিব, বিটিআরসি চেয়ারম্যান, বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন শিক্ষক ও মোবাইল অপারেটরদের সংগঠন অ্যাসোসিয়েশন অব মোবাইল টেলিকম অপারেটর্স অব বাংলাদেশের (এমটব) একজন প্রতিনিধির সমন্বয়ে এ কমিটি করা হয়েছে।

আদেশ প্রাপ্তির ৩০ দিনের মধ্যে কমিটিকে প্রতিবেদন দিতে বলেছে আদালত।

এ আদেশের পাশাপাশি স্বচ্ছ ভয়েস কল, দ্রুতগতির ইন্টারনেট এবং স্থিতিশীল মোবাইল নেটওয়ার্ক নিশ্চিত করতে বিবাদীদের নিষ্ক্রিয়তা কেন অবৈধ ঘোষণা করা হবে না এবং গ্রাহকের কেনা মোবাইল ইন্টারনেট ডাটার পরিপূর্ণ ব্যবহার নিশ্চিতে প্যাকেজে মেয়াদ বাতিল করতে কেন নির্দেশ দেয়া হবে না তা জানতে চেয়ে রুল জারি করা হয়েছে।

ডাক ও টেলিযোগাযোগ সচিব, বিটিআরসি চেয়ারম্যান, গ্রামীণফোনের প্রধান নির্বাহী ইয়াসির আজমান, রবির প্রধান নির্বাহী মাহতাব উদ্দিন আহমেদ, বাংলালিংকের প্রধান নির্বাহী এরিক আস টাইগার্স ডেন ও টেলিটকের প্রধান নির্বাহী মো. শাহাব উদ্দিনসহ সাত বিবাদীকে চার সপ্তাহের মধ্যে রুলের জবাব দিতে বলা হয়েছে।

চারটি মোবাইল অপারেটরের গ্রাহক সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী সাইফুর রহমান রাহি গত ৫ জানুয়ারি কল ড্রপ, দুর্বল নেটওয়ার্ক ও ইন্টারনেটের মেয়াদসহ নানা ভোগান্তি নিয়ে বিটিআরসিতে অভিযোগ করেন।

বিটিআরসির অভিযোগ সেল থেকে কোনো প্রতিকার না পেয়ে গত ১০ জানুয়ারি তিনি আইনি নোটিশ দেন। আইনি নোটিশেরও কোনো জবাব না পেয়ে হাইকোর্টে রিট করেন তিনি।

ওই রিটের প্রাথমিক শুনানি নিয়ে আদালত রুল জারি করে এবং নির্দেশ দেয়।

আদালতে রিটের পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী এম এ মাসুম। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল বিপুল বাগমার।

এর আগে গত বছরের ২২ নভেম্বর শক্তিশালী নেটওয়ার্কসহ মানসম্মত সেবা নিশ্চিত করতে মোবাইল ফোন কোম্পানিগুলোর বিরুদ্ধে কী কী পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে তা জানিয়ে ৬০ দিনের মধ্যে প্রতিবেদন দিতে বিটিআরসিকে নির্দেশ দেয় হাইকোর্ট।

অপারেটরদের কলড্রপ, ইন্টারনেটের ধীরগতি নিয়ে মোবাইল গ্রাহকদের অভিযোগ দীর্ঘদিনের। বিষয়গুলো নিয়ে নিয়ন্ত্রণ সংস্থা বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনে অসংখ্য অভিযোগও জমা পড়েছে।

ইন্টারনেটের গতি নির্ণয়ের জনপ্রিয় প্লাটফর্ম ওকলার হিসেবে গত বছরের ডিসেম্বরে বাংলাদেশ ছিল বিশ্বে মোবাইল ইন্টারনেটের গতিতে ১২৮তম দেশ। বাংলাদেশের চেয়ে মোবাইল ইন্টারনেটে ভালো অবস্থানে আছে যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশ লিবিয়া, আফ্রিকার দেশ উগান্ডাও।

মোবাইল ইন্টারনেট ও নেটওয়ার্ক ব্যবস্থার এই দুর্বল পরিস্থিতি নিয়ে গত বছরের ১২ জুন সমস্যার সমাধান করে গুণগত ও মানসম্মত নেটওয়ার্ক ব্যবস্থা নিশ্চিত করতে কর্তৃপক্ষের নিষ্ক্রিয়তা চ্যালেঞ্জ করে ‘ল রিপোর্টার্স ফোরামের’ সদস্য সাংবাদিক মেহেদী হাসান ডালিম, মোবাইল ফোন গ্রাহক অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি মহিউদ্দিন আহমেদ এবং সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী মো. রাশিদুল হাসান হাইকোর্টে রিট করেন।

এরপর হাইকোর্ট একটি রুল জারি করে তার জবাব দিতে বলে বিটিআরসিকে।

আরও পড়ুন:
রাজধানীতে স্মার্টফোন ও ট্যাব মেলা বৃহস্পতিবার থেকে

শেয়ার করুন