বয়স্ক ও শারীরিক অক্ষমদের জন্য রোবট আনছে হুন্দাই

player
বয়স্ক ও শারীরিক অক্ষমদের জন্য রোবট আনছে হুন্দাই

মবইডি রোবটটি উচ্চতায় নিচু এবং গঠনে চওড়া হওয়ায় সে সব কাজ সহজেই করতে পারে। ছবি: সংগৃহীত

১১০ পাউন্ড ওজন বহনে সক্ষম মবইডি বয়স্ক ও শারীরিকভাবে অক্ষমদের জন্য খুবই সহায়ক একটি যন্ত্র হতে যাচ্ছে- এমনটাই জানিয়েছে এর নির্মাতা প্রতিষ্ঠান হুন্দাই।

পার্সেল, পানীয়, গ্যাজেট, মনিটর এমনকি মানব শিশুসহ যেকোনো কিছু বহনে সক্ষম চার চাকার রোবট নিয়ে এসেছে দক্ষিণ কোরিয়ার প্রতিষ্ঠান হুন্দাই। রোবটটির নাম রাখা হয়েছে মোবাইল ইসেনট্রিক ড্রয়েড (মবইডি)।

মবইডি রোবটটি উচ্চতায় নিচু এবং গঠনে চওড়া হওয়ায় সে সব কাজ সহজেই করতে পারে।

২০২২ সালের জানুয়ারিতে অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া কনজিউমার ইলেকট্রনিক্স শোতে (সিইএস) এই রোবটটি উন্মোচন করা হবে। যেখানে রোবটটি কৃত্রিম প্রতিকূল পরিবেশে তাকে দেয়া কাজগুলো সম্পাদন করে দেখাবে।

রোবটিক্স ও কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তাবিষয়ক পত্রিকা রবরিপোর্টের প্রতিবেদনে জানা যায়, মবইডিতে সমান্তরাল বোর্ডে ৪টি চাকা লাগানো আছে। ১২ ইঞ্চির এই বায়ুপূর্ণ চাকাগুলোতে তিনটি করে মোটর লাগানো আছে। ফলে রোবটটিকে স্বাধীনভাবে নিয়ন্ত্রণ করা যায়। ফলে সহজেই সে ভারসাম্য রক্ষা করতে পারে এবং পথের মধ্যে আসা যেকোনো বাধাকে অতিক্রম করতে পারে। রোবটটিতে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার ফিচারও রয়েছে।

হুন্দাইয়ের অফিশিয়াল ইউটিউব চ্যানেলে প্রকাশিত হওয়া একটি ভিডিওতে রোবটটিকে বাচ্চা বহন করতে দেখা যায়। পিরামিড আকৃতির শ্যাম্পেনভর্তি গ্লাস নিয়েও চলাফেরা করতে দেখা যায়।

১১০ পাউন্ড ওজন বহনে সক্ষম মবইডি বয়স্ক ও শারীরিকভাবে অক্ষমদের জন্য খুবই সহায়ক একটি যন্ত্র হতে যাচ্ছে- এমনটাই জানিয়েছে এর নির্মাতা প্রতিষ্ঠান হুন্দাই।

তবে এর দাম কত হবে কিংবা কবে নাগাদ বাজারে পাওয়া যাবে, তা জানায়নি হুন্দাই।

আরও পড়ুন:
কাব্য প্রতিভায় তাক লাগালো রোবট আই-দা
রোবট মাছে কেমো হবে নির্ভুল, থাকবে না পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া
সন্তান জন্ম দিতে পারা রোবট উদ্ভাবন
প্রথমবারেই ওয়ার্ল্ড রোবট অলিম্পিয়াডে বাংলাদেশের বাজিমাত
প্রথমবারের মতো ওয়ার্ল্ড রোবট অলিম্পিয়াডে বাংলাদেশ

শেয়ার করুন

মন্তব্য

পেগাসাস বিতর্ক, পার্লামেন্টের মুখোমুখি ইসরায়েলি পুলিশ

পেগাসাস বিতর্ক, পার্লামেন্টের মুখোমুখি ইসরায়েলি পুলিশ

সরকারবিরোধী আন্দোলনের ক্ষেত্রে স্পাইওয়্যার প্রযুক্তি ব্যবহার না করার দাবি করেছে পুলিশ কমিশনার কোবি। ছবি: সংগৃহীত

অনেক পার্লামেন্ট সদস্যই উদ্বেগের কথা আমাকে জানিয়েছেন। ঘটনাটি খুবই বিরক্তির কারণ হয়ে দাঁড়াচ্ছে। স্পষ্টতই এই ঘটনা ব্যক্তির গোপনীয়তা ও গণতান্ত্রিক মূল্যবোধের লঙ্ঘন।

ইসরায়েলি পুলিশ দেশটির জনগণের ওপর বিতর্কিত হ্যাকিং প্রযুক্তি পেগাসাস ব্যবহার করছে এমন অভিযোগ পাওয়া গেছে।

কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল জাজিরার প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, এবার ইসরায়েলের পার্লামেন্ট দেশটির পুলিশের কাছে পেগাসাস ব্যবহারের ব্যাখ্যা চেয়েছে।

এর আগে কোনো সূত্র উল্লেখ না করে ক্যাটালিস্ট ফিন্যান্সিয়াল ডেইলির প্রতিবেদনে দাবি করা হয়, ইসরায়েলি পুলিশ এনএসও গ্রুপের বানানো স্পাইওয়্যার পেগাসাস ব্যবহার করছে।

প্রতিবেদনে আরও দাবি করা হয়েছে, প্রায়ই পুলিশ কোর্টের অনুমতি ছাড়া সরকারবিরোধী আন্দোলনের নেতাদের ওপর নজরদারির ক্ষেত্রে পেগাসাস ব্যবহার করেছে।

ইসরায়েলি পার্লামেন্টের সদস্য মেইরাভ বেন আরি জানিয়েছেন, সামনের সপ্তাহেই নাগরিকদের নিরাপত্তাবিষয়ক পার্লামেন্টারি কমিটির মুখোমুখি হবে পুলিশ। সেখানে পুলিশকে ক্যাটালিস্টের প্রতিবেদনের বিষয়ে প্রশ্ন করা হবে।

বেন আরি আরও জানিয়েছেন, অনেক পার্লামেন্ট সদস্যই উদ্বেগের কথা আমাকে জানিয়েছেন। ঘটনাটি খুবই বিরক্তির কারণ হয়ে দাঁড়াচ্ছে। স্পষ্টতই এই ঘটনা ব্যক্তির গোপনীয়তা ও গণতান্ত্রিক মূল্যবোধের লঙ্ঘন।

ক্যাটালিস্টের প্রতিবেদনের সম্পর্কে বলতে গিয়ে পুলিশ কমিশনার কোবি সাবটাই বলেন, পুলিশ থার্ড পার্টি সাইবার প্রযুক্তি ব্যবহার করে। তবে তিনি পেগাসাস ব্যবহারের বিষয়ে কিছু বলেননি।

তবে সরকারবিরোধী আন্দোলনের ক্ষেত্রে কোনো ধরনের স্পাইওয়্যার প্রযুক্তি ব্যবহারের বিষয়টি অস্বীকার করেছেন কোবি।

এ বিষয়ে এনএসওর কাছে জানতে চাইলে তারা এ বিষয়ে জানিয়েছে, ক্লায়েন্টের তথ্য তারা প্রকাশ করে না। কোনো সরকার বা সংস্থার কাছে প্রযুক্তি বিক্রির পর তারা সেখানে কোনোভাবেই সেখানকার এক্সেস আর তাদের হাতে থাকে না।

ব্যক্তিগত গোপনীয়তা লঙ্ঘনের অভিযোগে ২০১৩ সাল থেকে পেগাসাস যুক্তরাষ্ট্রের কালো তালিকায় রয়েছে।

আরও পড়ুন:
কাব্য প্রতিভায় তাক লাগালো রোবট আই-দা
রোবট মাছে কেমো হবে নির্ভুল, থাকবে না পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া
সন্তান জন্ম দিতে পারা রোবট উদ্ভাবন
প্রথমবারেই ওয়ার্ল্ড রোবট অলিম্পিয়াডে বাংলাদেশের বাজিমাত
প্রথমবারের মতো ওয়ার্ল্ড রোবট অলিম্পিয়াডে বাংলাদেশ

শেয়ার করুন

পর্ন ভিডিওতে গড়বড় ভার্চুয়াল মিটিং

পর্ন ভিডিওতে গড়বড় ভার্চুয়াল মিটিং

জুম বৈঠকের মধ্যে এই ভিডিও চালু করেন এক আগুন্তক। ছবি: টেকস্পট

জুমে হঠাৎই ঢুকে পড়েন এক আগন্তুক। লাইভে তিনি দেখাতে থাকেন অ্যানিমেটেড অ্যাডাল্ট কনটেন্ট ফ্যান্টাসি সেভেনের ‘টিফা লকহার্টের’ ত্রিমাত্রিক ভিডিও। যেখানে দেখা যায় কনটেন্টের প্রধান চরিত্র তিফা এক ব্যক্তির সঙ্গে মিলনে ব্যস্ত।

ইতালিতে তথ্যের স্বচ্ছতা প্রশ্নে আলোচনা চলছিল দেশটির পার্লামেন্টের উচ্চকক্ষ সিনেটে। করোনার কারণে সোমবারের বৈঠকে ভার্চুয়ালি অংশ নিয়েছিলেন সিনেটররা। ফেসবুক ও স্থানীয় সেনেটাও টেলিভিশনে সরাসরি প্রচার হচ্ছিল বৈঠকটি।

আলোচনার একপর্যায়ে ঘটে অভাবিত বিপত্তি। টেকস্পটের খবরে বলা হয়েছে, বৈঠকের ৩০ মিনিটের মাথায় বক্তব্য রাখছিলেন পদার্থবিজ্ঞানে নোবেলজয়ী জর্জিও প্যারিসি।এ সময় জুমে হঠাৎ করেই ঢুকে পড়েন এক আগন্তুক।

লাইভে তিনি দেখাতে থাকেন অ্যানিমেটেড অ্যাডাল্ট কনটেন্ট ফ্যান্টাসি সেভেনের ‘টিফা লকহার্টের’ ত্রিমাত্রিক ভিডিও। যেখানে দেখা যায় কনটেন্টের প্রধান চরিত্র তিফা এক ব্যক্তির সঙ্গে মিলনে ব্যস্ত।

ফাইভ স্টার মুভমেন্টের সিনেটর মারিয়া লাউরার ৩০ সেকেন্ডের চেষ্টায় লাইভ স্টিমিং বন্ধ হলেও, নব্বইয়ের দশকে আমেরিকান কমেডি মুভির মতো মৃদু শব্দে আরও কিছুক্ষণ শোনা যায় শীৎকার।

একপর্যায়ে এসব বন্ধ হলে আলোচনায় মনোযোগী হন স্পিকার।

সিনেটর ম্যান্টোভ্যানি স্থানীয় সংবাদ সংস্থা আন্দকোনসকে জানিয়েছেন, সিনেটে বৈঠকের সময় পর্দায় পর্ন সিনেমা ভেসে উঠেছিল। অবশ্যই পুলিশের কাছে অভিযোগ করব।

তিনি বলেন, ‘খুব বাজে একটা পর্ব ছিল ওটা। অনলাইনে বৈঠক চলার সময় কেউ একজন গোপনে প্রবেশ করে এবং পর্নোগ্রাফিক ডিভিও দেখাতে থাকেন। পুলিশের কাছে অভিযোগ করা হবে, যেন তারা ওই ব্যক্তিকে শনাক্ত করে বিচারের মুখোমুখি করতে পারে।’

আরও পড়ুন:
কাব্য প্রতিভায় তাক লাগালো রোবট আই-দা
রোবট মাছে কেমো হবে নির্ভুল, থাকবে না পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া
সন্তান জন্ম দিতে পারা রোবট উদ্ভাবন
প্রথমবারেই ওয়ার্ল্ড রোবট অলিম্পিয়াডে বাংলাদেশের বাজিমাত
প্রথমবারের মতো ওয়ার্ল্ড রোবট অলিম্পিয়াডে বাংলাদেশ

শেয়ার করুন

আলিবাবার ক্লাউডসেবায় যুক্তরাষ্ট্রের নিরাপত্তা শঙ্কা

আলিবাবার ক্লাউডসেবায় যুক্তরাষ্ট্রের নিরাপত্তা শঙ্কা

২০১৫ সালে চীনের বাইরে প্রথমবারের মতো তারা সিলিকন ভ্যালিতে কম্পিউটিং হাব স্থাপন করে। ছবি: সংগৃহীত

গার্টনারের মতে, যদি যুক্তরাষ্ট্রের নীতিনির্ধারকরা সত্যিই দেশটির প্রতিষ্ঠানগুলোর সঙ্গে আলিবাবার লেনদেন বন্ধ করে দেয় তাহলে সামগ্রিকভাবেই আলিবাবার সুনাম ক্ষতিগ্রস্ত হবে।

একবিংশ শতাব্দীতে তথ্যই এখন অনেক বড় সম্পদ। সেই তথ্য নিয়েই এখন চীন ও যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে উত্তেজনা চলছে। দুই দেশই চায় না এক দেশের জনগণের তথ্য আরেক দেশের কাছে হস্তগত হোক। সে কারণে চীন নিজের দেশে ফেসবুক, গুগলের মতো যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক প্রতিষ্ঠানগুলোর সেবা নিষিদ্ধ করে দিয়েছে। বিগত ট্রাম্প প্রশাসনের সময় থেকে একই পথে হাঁটছে যুক্তরাষ্ট্রও।

কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল জাজিরার প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় নিরাপত্তার জন্য আলিবাবার ক্লাউডসেবা কোনো ধরনের হুমকি সৃষ্টি করছে কি না তা খতিয়ে দেখছে বাইডেন প্রশাসন।

চীনা প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানগুলোর সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিষ্ঠানগুলো কিভাবে কাজ করে সেই বিষয় দেশটির গুরুত্বপূর্ণ তিন ব্যক্তিকে এই বিষয়ে জানানো হয়েছে। তবে সেই তিন ব্যক্তির পরিচয় জানা যায়নি।

আলিবাবার ক্লাউড ব্যবসা তদন্ত করে দেখার দায়িত্ব দেয়া হয়েছে দেশটির বাণিজ্য বিভাগের গোয়েন্দা ও নিরাপত্তা অফিসকে।

এই অফিসটি সাবেক ট্রাম্প প্রশাসন প্রতিষ্ঠা করেছিল, যাতে দেশটির প্রতিদ্বন্দ্বী রাষ্ট্রগুলো বিশেষ করে চীন, রাশিয়া, কিউবা, ইরান, উত্তর কোরিয়া এবং ভেনিজুয়েলার মতো রাষ্ট্রগুলোর সঙ্গে দেশটির প্রতিষ্ঠানগুলোর লেনদেনে হস্তক্ষেপ করা যায়।

যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিকদের ব্যক্তিগত তথ্য, বুদ্ধিবৃত্তিক সম্পদ চীনা প্রতিষ্ঠানগুলো কিভাবে দেখভাল করছে, গ্রাহকের আইপি এড্রেস সংরক্ষণ হচ্ছে কি না, চীন সরকার সেই তথ্যভান্ডারে হস্তক্ষেপ করতে পারে কি না, তা দেখাই এই তদন্তের উদ্দেশ্য।

দেশটির কর্তৃপক্ষ ক্লাউড ব্যবসায় ঝুঁকি কমিয়ে আনতে প্রতিষ্ঠানটিকে চাপ প্রয়োগ করতে চায়। এমন বিষয় সামনে আসার পরই শেয়ারবাজারে আলিবাবার দর ৩ শতাংশ কমে যায়।

যুক্তরাষ্ট্রে আলিবাবার ক্লাউড ব্যবসার আকার মাত্র ৫০ মিলিয়ন ডলারের, কিন্তু স্টামফোর্ডভিত্তিক গবেষণা প্রতিষ্ঠান গার্টনারের মতে, যদি যুক্তরাষ্ট্রের নীতিনির্ধারকরা সত্যিই দেশটির প্রতিষ্ঠানগুলোর সঙ্গে আলিবাবার লেনদেন বন্ধ করে দেয় তাহলে সামগ্রিকভাবেই আলিবাবার সুনাম ক্ষতিগ্রস্ত হবে।

ওয়াশিংটনে অবস্থিত চীনা দূতাবাসকে অনুরোধ করা হলেও এ বিষয়ে মন্তব্য করতে রাজি হয়নি। এমনকি আলিবাবাও কোনো মন্তব্য করেনি।

তবে এমন পরিস্থিতিতে ভবিষ্যতে যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিষ্ঠানগুলো ব্যবসার ক্ষেত্রে আলিবাবাকে এড়িয়ে চলতে পারে।

আলিবাবা পৃথিবীর চতুর্থ বৃহৎ ক্লাউডসেবা প্রদানকারী প্রতিষ্ঠান। যুক্তরাষ্ট্রের ফোর্ড মোটর কোম্পানি, আইবিএমের রেডহ্যাটের মতো প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে এর ব্যাবসায়িক সম্পর্ক রয়েছে।

চীন ও যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে প্রযুক্তি উত্তেজনা শুরু হওয়ার আগে আলিবাবা ক্লাউডের লক্ষ্য ছিল যুক্তরাষ্ট্রের বাজার ধরা। ২০১৫ সালে চীনের বাইরে প্রথমবারের মতো তারা সিলিকন ভ্যালিতে কম্পিউটিং হাব স্থাপন করে। যাতে আমাজন, মাইক্রোসফট ও আলফাবেটের সঙ্গে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করা যায়। পরবর্তী ভার্জিনিয়াতে একটি ডাটা সেন্টারও প্রতিষ্ঠা করে আলিবাবা।

ক্লাউডসেবা কী?

ক্লাউডসেবা হলো ইন্টারনেট কাজে লাগিয়ে ভিন্ন কোনো স্থানে নিজের প্রয়োজনীয় ডাটা ও তথ্য সংরক্ষণ করে রাখার সেবা। অনেক ক্ষেত্রে নিজেদের হার্ডড্রাইভে তথ্য সংরক্ষণ করলে এর সুরক্ষায় ঝুঁকি থাকে বা হার্ডড্রাইভ নষ্টও হতে পারে। সে ক্ষেত্রে ক্লাউড সেবায় ডাটা নিরাপদে থাকে। এমনকি বিশ্বের যে কোনো প্রান্ত থেকে শুধু ইন্টারনেট কানেকশন থাকলে সে ডাটা ব্যবহার করা যায়। আলিবাবা ক্লাউড ছাড়াও ড্রপবক্স বা গুগল ড্রাইভও এ ধরনের সেবা প্রদান করে থাকে।

আরও পড়ুন:
কাব্য প্রতিভায় তাক লাগালো রোবট আই-দা
রোবট মাছে কেমো হবে নির্ভুল, থাকবে না পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া
সন্তান জন্ম দিতে পারা রোবট উদ্ভাবন
প্রথমবারেই ওয়ার্ল্ড রোবট অলিম্পিয়াডে বাংলাদেশের বাজিমাত
প্রথমবারের মতো ওয়ার্ল্ড রোবট অলিম্পিয়াডে বাংলাদেশ

শেয়ার করুন

৫০ মেগাপিক্সেল সেলফি ক্যামেরার ফাইভজি ফোন আনল ভিভো

৫০ মেগাপিক্সেল সেলফি ক্যামেরার ফাইভজি ফোন আনল ভিভো

ভিভোর নতুন ফোন উন্মোচনে অতিথিরা।

কালার চেঞ্জিং প্রযুক্তি থাকলেও সাধারণ অবস্থায় ভিভো ভি২৩ ৫জি মিলবে দুটি রঙে। স্টারডাস্ট ব্ল্যাক এবং সানসাইন গোল্ড। স্মার্টফোনটির দাম ৩৯ হাজার ৯৯০ টাকা।

সেলফিপ্রেমীদের জন্য বছরের শুরুতেই নতুন ফোন এনেছে স্মার্টফোন নির্মাতা প্রতিষ্ঠান ভিভো। এ জন্য প্রতিষ্ঠানটির নতুন ফোনটিতে সামনে দেয়া হয়েছে ৫০ মেগাপিক্সেলের ক্যামেরা।

বাজারে আনা ফাইভজি ডিভাইসটি ভিভো ভি২৩ ৫জি।

রোববার সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে স্মার্টফোনটির উদ্বোধন করে ভিভো। ক্রেতারা ২১ জানুয়ারি পর্যন্ত স্মার্টফোনটির প্রি-বুকিং দিতে পারবেন; ২২ জানুয়ারি থেকে সারা দেশে পাওয়া যাবে ডিভাইসটি।

কালার চেঞ্জিং বডি ছাড়াও স্মার্টফোনটির বড় আকর্ষণ ৫০ মেগাপিক্সেল অটোফোকাস (এএফ) পোট্রেট সেলফি প্রযুক্তি।

ভিভো ভি২৩ ফাইভজি মডেলটিতে আছে ৮ জিবি র‌্যাম এবং ১২৮ জিবি রম। ৪২০০ এমএএইচ ব্যাটারির স্মার্টফোনটিতে আছে ৪৪ ওয়াটের ফ্ল্যাশ চার্জিং প্রযুক্তি।

ভিভো ভি২৩ ৫জি স্মার্টফোনের ফিচারে রয়েছে ফোর-কে সেলফি ভিডিওর সুবিধা। ফোনটির ৬৪ মেগাপিক্সেলের ট্রিপল ক্যামেরার সঙ্গে রয়েছে একটি ৮ মেগাপিক্সেল ওয়াইড অ্যাঙ্গেল ক্যামেরা এবং একটি ২ মেগাপিক্সেল ম্যাক্রো ক্যামেরা।

ফাস্ট অ্যাপ স্টার্টআপ, ইন্সটলেশন স্পিড এবং ডুয়াল মোড ফাইভজি স্ট্যান্ডবাইয়ের প্রিমিয়াম এক্সপেরিয়েন্স দিতে ভি২৩ ফাইভজিতে ব্যবহার করা হয়েছে মিডিয়াটেক ডাইমেনসিটি ৯২০ প্রসেসর।

ভিভো বাংলাদেশের অ্যাসিস্ট্যান্ট ম্যানেজার (পিআর) রিয়াসাত আহমেদ বলেন, ‘যুগের সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলতে যারা পছন্দ করে ভিভো সব সময়ই তাদের জন্য সেরা অভিজ্ঞতা এবং সর্বোচ্চ সেবা দেওয়ার চেষ্টা করে। ভিভো ভি২৩ ৫জি স্মার্টফোনটি ওজনে হালকা ও মার্জিত ডিজাইনে তৈরি যা ফ্যাশনেবল। দুর্দান্ত সেলফির অভিজ্ঞতা ও পোর্ট্রেট শটের জন্য ভি২৩ ফাইভজি ফোনটি সেরা।’

কালার চেঞ্জিং প্রযুক্তি থাকলেও সাধারণ অবস্থায় ভিভো ভি২৩ ৫জি মিলবে দুটি রঙে। স্টারডাস্ট ব্ল্যাক ও সানসাইন গোল্ড। স্মার্টফোনটির দাম ৩৯ হাজার ৯৯০ টাকা।

আরও পড়ুন:
কাব্য প্রতিভায় তাক লাগালো রোবট আই-দা
রোবট মাছে কেমো হবে নির্ভুল, থাকবে না পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া
সন্তান জন্ম দিতে পারা রোবট উদ্ভাবন
প্রথমবারেই ওয়ার্ল্ড রোবট অলিম্পিয়াডে বাংলাদেশের বাজিমাত
প্রথমবারের মতো ওয়ার্ল্ড রোবট অলিম্পিয়াডে বাংলাদেশ

শেয়ার করুন

বিটকয়েনের মতো কারেন্সি আনছে ওয়ালমার্ট

বিটকয়েনের মতো কারেন্সি আনছে ওয়ালমার্ট

বিটকয়েন ও ইথারিয়ামের মতো নিজস্ব ব্লকচেইনের ক্রিপ্টোকারেন্সি আনছে ওয়ালমার্ট। ছবি: সংগৃহীত

প্রতিষ্ঠানটি যেহেতু নিজেরাই ক্রিপ্টোকারেন্সি নিয়ে আসছে, তার মানে এটি খুব সম্ভব যে ওয়ালমার্ট তার স্টোরগুলোতে কেনাবেচার ক্ষেত্রে বিটকয়েন অনুমোদন দিতে পারে।

বিশ্বের সবচেয়ে বড় খুচরা পণ্য বেচাকেনার প্রতিষ্ঠান ওয়ালমার্ট সম্ভবত ক্রিপ্টোকারেন্সি ও ননফাঞ্জিবল টোকেনে (এনএফটি) প্রবেশ করতে যাচ্ছে।

এনডিটিভির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ২০২১ সালের ডিসেম্বরে কিছু ট্রেডমার্ক ডকুমেন্ট থেকে প্রাপ্ত তথ্যে এমনটাই ধারণা করা হচ্ছে।

প্রতিষ্ঠানটি ইতিমধ্যে ব্লকচেইনের প্রাথমিক কাজ সম্পন্ন করছে। ধারণা করা হচ্ছে, এটি কোনো টোকেন নিয়ে আসবে না। সরাসরি বিটকয়েন ও ইথারিয়ামের মতো নিজস্ব ব্লকচেইনের ক্রিপ্টোকারেন্সি নিয়ে আসবে।

যদি সত্যিই ওয়ালমার্ট ক্রিপ্টোকারেন্সি প্রচলন শুরু করে, তাহলে মূলধারার কোম্পানিগুলোতে ক্রিপ্টো এডোপটেশন অনেকটা চূড়া থেকেই শুরু হবে।

সিএনবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ওয়ালমার্ট মোট ৭টি ট্রেডমার্ক নিয়েছে। এ ট্রেডমার্ক আবেদনপত্রগুলো দেখে বোঝা যাচ্ছে ক্রিপ্টোর পাশাপাশি খুব শিগগিরই প্রতিষ্ঠানটি ভার্চুয়াল পণ্য হিসেবে অনলাইনে ননফাঞ্জিবল টোকেন বেচাকেনা শুরু করবে। যা তাদের নিজস্ব ক্রিপ্টোকারেন্সিতে কিনতে হবে। এ ছাড়া ওয়ালমার্ট বিশ্বব্যাপী ক্রিপ্টোনির্ভর ফাইন্যান্সিয়াল সার্ভিসও চালু করতে যাচ্ছে। যেখানে ক্রিপ্টোকারেন্সি ও ডিজিটাল টোকেন লেনদেন করা যাবে।

শুধু ক্রিপ্টো নয়, মেটাভার্সের জগতেও প্রবেশ করতে যাচ্ছে প্রতিষ্ঠানটি। তারা অগমেন্টেড রিয়েলিটি ও ভার্চুয়াল রিয়েলিটির জন্য ফিটনেস অ্যাপ্লিকেশন নিয়ে আসছে।

যদিও এসব পরিকল্পনার বিস্তারিত কিছুই প্রকাশ করেনি ওয়ালমার্ট।

প্রতিষ্ঠানটি সব সময় নতুনত্বকে গ্রহণ করে আসছে। তাই বিকাশমান প্রযুক্তি হিসেবে ব্লকচেইনকে ব্যবহার করতে চায় প্রতিষ্ঠানটি। প্রতিষ্ঠানটি যেহেতু নিজেরাই ক্রিপ্টোকারেন্সি নিয়ে আসছে, তার মানে এটি খুব সম্ভব যে ওয়ালমার্ট তার স্টোরগুলোতে কেনাবেচার ক্ষেত্রে বিটকয়েন অনুমোদন দিতে পারে।

শুধু ক্রিপ্টো নয়, কোম্পানিটি মেটাভার্সের জগতেও প্রবেশ করছে। তারা অগমেন্টেড রিয়েলিটি ও ভার্চুয়াল রিয়েলিটির জন্য একটি ফিটনেস অ্যাপ নিয়ে আসছে।

আরও পড়ুন:
কাব্য প্রতিভায় তাক লাগালো রোবট আই-দা
রোবট মাছে কেমো হবে নির্ভুল, থাকবে না পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া
সন্তান জন্ম দিতে পারা রোবট উদ্ভাবন
প্রথমবারেই ওয়ার্ল্ড রোবট অলিম্পিয়াডে বাংলাদেশের বাজিমাত
প্রথমবারের মতো ওয়ার্ল্ড রোবট অলিম্পিয়াডে বাংলাদেশ

শেয়ার করুন

আইটি সেবা রপ্তানিতে নগদ সহায়তা সহজ হলো

আইটি সেবা রপ্তানিতে নগদ সহায়তা সহজ হলো

ফাইল ছবি

বাংলাদেশ ব্যাংকের ফরেন এক্সচেঞ্জ অ্যান্ড পলিসি বিভাগ থেকে জারি করা সার্কুলারে বলা হয়, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগ কর্তৃক স্বীকৃত আন্তর্জাতিক মার্কেট প্লেসের মাধ্যমে রপ্তানি কার্যক্রম সম্পাদন হতে হবে এবং যথাযথ ডকুমেন্ট থাকতে হবে।

আন্তর্জাতিক বাজারে ৫ হাজার ডলারের সফটওয়্যার ও তথ্যপ্রযুক্তি পরিষেবা (আইটিইএস) রপ্তানির ক্ষেত্রে নগদ সহায়তার প্রক্রিয়া আরও সহজ করল বাংলাদেশ ব্যাংক।

এখন থেকে সহায়তা প্রাপ্তিতে টেলি ট্রান্সফার (টিটি) বার্তার ভাষ্যে আমদানিসংশ্লিষ্ট তথ্যসূত্রের প্রয়োজন হবে না। এ ক্ষেত্রে পাঁচটি শর্ত পরিপালন করতে হবে।

রোববার বাংলাদেশ ব্যাংকের ফরেন এক্সচেঞ্জ অ্যান্ড পলিসি বিভাগ থেকে এ-সংক্রান্ত একটি সার্কুলার জারি করা হয়।

সার্কুলারে বলা হয়, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগ কর্তৃক স্বীকৃত আন্তর্জাতিক মার্কেট প্লেসের মাধ্যমে রপ্তানি কার্যক্রম সম্পাদন হতে হবে এবং যথাযথ ডকুমেন্ট থাকতে হবে।

ইলেকট্রনিক পদ্ধতিতে মার্কেট প্লেসের সঙ্গে চুক্তির ক্ষেত্রে রপ্তানিকারক প্রতিষ্ঠান ব্যাংক শাখাকে সংশ্লিষ্ট ওয়েব লিংক সরবরাহ করবে।

একই সঙ্গে ব্যাংক শাখাকে আন্তর্জাতিক মার্কেট প্লেসের মাধ্যমে সফটওয়্যার ও আইটিইএস রপ্তানি কার্যক্রম সম্পর্কে ওয়েব লিংকসহ তথ্য সংগ্রহ ও তা যাচাই করে নিশ্চিত হতে হবে।

রপ্তানি আয় বাবদ প্রাপ্ত অর্থের সপক্ষে স্বয়ংক্রিয়ভাবে প্রস্তুতকৃত ইনভয়েস কনফার্মেশনগুলোর প্রিন্ট আউট আবেদনপত্রের সঙ্গে দাখিলসহ ওই দলিলাদি যাচাইয়ের জন্য প্রয়োজনীয় অডিট ট্রেইলের ওয়েব লিংক আবেদনকারী প্রতিষ্ঠান প্রদান করবে।

সার্কুলার জারির তারিখ থেকে নতুন নির্দেশনা কার্যকর হবে।

আরও পড়ুন:
কাব্য প্রতিভায় তাক লাগালো রোবট আই-দা
রোবট মাছে কেমো হবে নির্ভুল, থাকবে না পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া
সন্তান জন্ম দিতে পারা রোবট উদ্ভাবন
প্রথমবারেই ওয়ার্ল্ড রোবট অলিম্পিয়াডে বাংলাদেশের বাজিমাত
প্রথমবারের মতো ওয়ার্ল্ড রোবট অলিম্পিয়াডে বাংলাদেশ

শেয়ার করুন

১৭ কোটি টাকা বিদেশি বিনিয়োগ পেল ‘টেন মিনিট স্কুল’

১৭ কোটি টাকা বিদেশি বিনিয়োগ পেল ‘টেন মিনিট স্কুল’

এই টাকা দিয়ে কী করবেন- এমন প্রশ্নের উত্তরে আয়মান সাদিক বলেন, ‘বিনিয়োগ পাওয়ার পরপরই আমি একটা লিস্ট করে ফেলেছি। সে অনুযায়ীই এখন নতুন সাজে সাজাব আমার স্বপ্নের প্রতিষ্ঠানটিকে। এতদিন থ্রিডি ভিডিও বানাতে পারিনি। এখন সব কঠিন টপিকের থ্রিডি ভিডিও বানাব। সার্ভারের খরচের ভয়ে আমাদের অ্যাপে লাইভ ক্লাস না নিয়ে সব সময় ফেসবুক আর ইউটিউবে নিয়েছি। এখন আমাদের নিজেদের অ্যাপে লাইভ ক্লাসগুলো নেব। যেন স্বল্প ব্যান্ডউইডথেও আমাদের শিক্ষার্থীরা সহজেই ক্লাস করতে পারে।’

দেশের সবচেয়ে বড় অনলাইনভিত্তিক শিক্ষা প্ল্যাটফর্ম টেন মিনিট স্কুল ১৭ কোটি টাকা বিদেশি বিনিয়োগ পেয়েছে। প্রতিষ্ঠানটি প্রথমবারের মতো প্রাতিষ্ঠানিক এ বিনিয়োগ পেয়েছে। ভারতের সেকোয়া ক্যাপিটাল এই বিনিয়োগ করেছে। এ বিনিয়োগের বিপরীতে সেকোয়া ক্যাপিটাল টেন মিনিট স্কুলের মালিকানার সঙ্গে যুক্ত হবে।

বিশ্বের শীর্ষ ভেঞ্চার ক্যাপিটাল কোম্পানির একটি ভারতের সেকোয়া ক্যাপিটাল। প্রতিষ্ঠানটি তাদের 'সার্জ' প্রোগ্রামের মাধ্যমে অনলাইনে জনপ্রিয় শিক্ষা প্ল্যাটফর্মটিতে এই বিনিয়োগ নিয়ে এসেছে বলে রোববার টেন মিনিট স্কুলের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে।

এতদিন শিক্ষা প্ল্যাটফর্ম হিসেবে টেন মিনিট স্কুল প্রকল্পভিত্তিক স্পনসরশিপে পরিচালিত হয়ে আসছিল। আর শুরু থেকে এটির মালিকানার সঙ্গে যুক্ত ছিলেন প্রতিষ্ঠানটির দুই উদ্যোক্তা আয়মান সাদিক ও আবদুল্লাহ আবইয়াদ।

টেন মিনিট স্কুলের প্রতিষ্ঠাতা এবং পরিচালক আয়মান সাদিক নিউজবাংলাকে বলেন, ‘গত ৬-৭ বছরে টেন মিনিট স্কুল বাদে আর কিছু নিয়ে চিন্তা করিনি আমি। অনেক কিছু করার ইচ্ছা থাকলেও অনেক সময় করা হয়ে ওঠেনি, কারণ টাকা ছিল না।’

তিনি বলেন, ‘অনেক পরিকল্পনা অর্ধেক রাস্তায় গিয়ে থেমে যেত। সব সময় মনে হতো আর কিছু টাকা থাকলেই এসব করে ফেলা যেত। সেই অপূর্ণ ইচ্ছাগুলো মেটাতেই ফান্ডরেইজিংইয়ের পেছনে গত এক বছর সময় দেয়া। এই পুরো সময়টা আমি আসলে অনেক কিছু থেকেই একটু বিচ্ছিন্ন ছিলাম। অনেক জায়গায় সময় দিতে পারিনি বলে আন্তরিকভাবে দুঃখিত। সবার সহযোগিতায় এখন যেহেতু টাকার একটা ব্যবস্থা হয়ে গেছে, এখন সময় সেই অপূর্ণ স্বপ্নগুলোকে বাস্তবে রূপদান করার। আশা করছি সফল হব।’

এই টাকা দিয়ে প্রতিষ্ঠানটিকে নতুন করে কীভাবে সাজাবেন- এ প্রশ্নের উত্তরে আয়মান সাদিক বলেন, ‘বিনিয়োগ পাওয়ার পরপরই আমি একটা লিস্ট করে ফেলেছি। সে অনুযায়ীই এখন নতুন সাজে সাজাব আমার স্বপ্নের প্রতিষ্ঠানটিকে। এতদিন থ্রিডি ভিডিও বানাতে পারিনি। এখন সব কঠিন টপিকের থ্রিডি ভিডিও বানাব। সার্ভারের খরচের ভয়ে আমাদের অ্যাপে লাইভ ক্লাস না নিয়ে সব সময় ফেসবুক আর ইউটিউবে নিয়েছি। এখন আমাদের নিজেদের অ্যাপে লাইভ ক্লাসগুলো নেব। যেন স্বল্প ব্যান্ডউইডথেও আমাদের শিক্ষার্থীরা সহজেই ক্লাস করতে পারে।’

‘অনেক ট্যালেন্টেড আর এক্সপেরিয়েন্সড মানুষের সাথে কাজ করার ইচ্ছা ছিল। এখন একটু সাহস করে টেন মিনিট স্কুলে জয়েন করার জন্য বলতে চাই। নিজেদের অনেকগুলো স্টুডিও তৈরির ইচ্ছা ছিল। ভিডিও কোয়ালিটি আরো অনেক ভালো করতে চাই। সায়েন্স ল্যাব করার ইচ্ছা ছিল, সেটা করব। যেখানে সব সময় এক্সপেরিমেন্টগুলোর ভিডিও করা যাবে।’

তিনি বলেন, ‘রিসার্চ অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট ল্যাব বানাব। যেখানে সব সময় নতুন নতুন প্রোডাক্ট নিয়ে কাজ চলতে থাকবে। কয়েক শ ট্যালেন্টেড টিচারের সাথে কাজ করতে চাই। বাংলাদেশের বেস্ট টিচারদের সারা দেশের ছাত্র-ছাত্রীদের কাছে পৌঁছে দিতে চাই। কয়েক হাজার নতুন অনলাইন টিচারকে ট্রেইন করতে চাই, যেন তারা পরবর্তী প্রজন্মকে আরো ভালো কনটেন্ট উপহার দিতে পারে।’

১৭ কোটি টাকা বিদেশি বিনিয়োগ পেল ‘টেন মিনিট স্কুল’

‘আমাদের ৩০০ জনের টিমকে ১ হাজার জনের টিম বানাতে চাই; যারা সার্বক্ষণিক নতুন কী কী কনটেন্ট বানানো যায় সেটা নিয়ে চিন্তা করতে থাকবে। প্রতিটা কোর্সের জন্যে আলাদা আলাদা সেট ডিজাইন করে একদম মুভি লেভেলের টিউটোরিয়াল বানাতে চাই।’

‘২-৮ বছর বয়সী বাচ্চাদের জন্য বাংলায় সবকিছু শেখার একটি পরিপূর্ণ অ্যাপ বানাতে চাই। এমন আরও অনেক অনেক কিছু করতে চাই,’ বলেন আয়মান সাদিক।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, বিদায়ী বছরে প্ল্যাটফর্মটিতে আগের বছরের চেয়ে ১২ গুণ বেশি ব্যবসায়িক প্রবৃদ্ধি হয়েছে। সেকোয়া ক্যাপিটালের এই বিনিয়োগ টেন মিনিট স্কুলের পণ্য, প্রযুক্তি, দক্ষ জনবল এবং কার্যক্রমের বিস্তার ঘটাতে সাহায্য করবে। এই বিনিয়োগের মাধ্যমে নতুন বছরে টেন মিনিট স্কুলের কার্যক্রম আরও বিকশিত হবে। মানসম্পন্ন কনটেন্ট তৈরিতে এই বিনিয়োগ ব্যাপক ভূমিকা রাখবে।

আয়মান সাদিক ও আবদুল্লাহ আবইয়াদের স্বপ্নের প্রতিষ্ঠান টেন মিনিট স্কুল শিক্ষার্থীদের পড়াশোনার কার্যক্রম শুরু করে ২০১৫ সালে। শুরু থেকে স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীদের অনলাইন পড়াশোনাকে সহজ করতে কাজ করছে প্রতিষ্ঠানটি। টেন মিনিট স্কুল অ্যাপের মাধ্যমে শিক্ষার্থীরা প্রথম থেকে দ্বাদশ শ্রেণির যেকোনো বিষয় অধ্যায়ভিত্তিক ভিডিও লেকচারের মাধ্যমে শিখতে পারছে। পাশাপাশি নিজেকে যাচাই করার জন্য রয়েছে কুইজ এবং অনুশীলনের ব্যবস্থা। ফলে শিক্ষার্থীদের কাছে দিন দিন জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে টেন মিনিট স্কুল অ্যাপ।

আয়মান সাদিক বলেন, ‘শুরুতে আমরা প্রতিষ্ঠানটি গড়ে তুলতে এক কোটি টাকার বেশি বিনিয়োগ করেছিলাম। ২০১৬ সালে আমাদের এ উদ্যোগের সঙ্গে যুক্ত হয় টেলিকম অপারেটর রবি। এ ছাড়া আমরা বিভিন্ন প্রকল্পের বিপরীতে স্পনসর নিতাম। এখন এসে শিক্ষা কার্যক্রমকে আরও বিস্তৃত করতে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীকে যুক্ত করলাম।’

দেশসেরা শিক্ষকের তত্ত্বাবধানে তৈরি প্রথম থেকে দ্বাদশ শ্রেণির যেকোনো বিষয়ের ২৫ হাজারের বেশি অধ্যায়ভিত্তিক ভিডিও লেকচার তৈরি করা হয়েছে। বর্তমানে বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় এই লার্নিং অ্যাপ ব্যবহার করছে ৩০ লাখের বেশি শিক্ষার্থী।

২০২০ সালে ৯০ লাখ নতুন শিক্ষার্থী যুক্ত হয় প্ল্যাটফর্মটিতে। এই সংখ্যা আরও বাড়িয়ে নিয়ে যেতে কাজ করছে টেন মিনিট স্কুল।

আয়মান সাদিক বলেন, ‘গত এক বছর আমাদের পুরো টিম এই ফান্ডরেইজিংয়ের জন্য দিনরাত কষ্ট করেছে। সত্যি বলতে এখন আর আমি না থাকলেও আমাদের টিম পুরোটা চালিয়ে নিতে পারবে। এমন একটা টিমের সাথে কাজ করতে পারা আসলে একটা বিশাল পাওয়া।’

‘আমাদের এই স্বপ্নের সাথে থাকার জন্য আমাদের ছাত্র-ছাত্রী ও শুভাকাঙ্ক্ষীদের অসংখ্য ধন্যবাদ জানাচ্ছি।’

আরও পড়ুন:
কাব্য প্রতিভায় তাক লাগালো রোবট আই-দা
রোবট মাছে কেমো হবে নির্ভুল, থাকবে না পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া
সন্তান জন্ম দিতে পারা রোবট উদ্ভাবন
প্রথমবারেই ওয়ার্ল্ড রোবট অলিম্পিয়াডে বাংলাদেশের বাজিমাত
প্রথমবারের মতো ওয়ার্ল্ড রোবট অলিম্পিয়াডে বাংলাদেশ

শেয়ার করুন