কুড়িগ্রাম কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে চাকরি

player
কুড়িগ্রাম কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে চাকরি

নিয়োগ পরীক্ষায় অংশগ্রহণের জন্য কোনো ধরনের টিএ / ডিএ দেয়া হবে না। কোনো ধরনের তদবির প্রার্থীর অযোগ্যতা বলে বিবেচিত হবে।

কুড়িগ্রাম কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে অতিথি প্রশিক্ষক এবং জব প্লেসমেন্ট অফিসার পদে জনবল নিয়োগের জন্য বিজ্ঞপ্তি দেয়া হয়েছে। আগ্রহী প্রার্থীকে ২৯ ডিসেম্বরের মধ্যে ডাকে আবেদনপত্র পাঠাতে হবে।

১. পদের নাম: অতিথি প্রশিক্ষক

বিভাগ: আইটি সাপোর্ট সার্ভিস

পদের সংখ্যা: ১টি

বেতন: দৈনিক ১২০০ টাকা

শিক্ষাগত যোগ্যতা: সংশ্লিষ্ট বিষয়ে বিএসসি ইঞ্জিনিয়ারিং। ডিপ্লোমা ইন ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের ক্ষেত্রে ৫ বছরের অভিজ্ঞতা থাকতে হবে। সংশ্লিষ্ট বিষয়ে মাস্টার ক্রাফটসম্যান / ফোরম্যানের ক্ষেত্রে ১০ বছরের অভিজ্ঞতা থাকতে হবে।

চাকরির ধরন: অস্থায়ী

২. পদের নাম: অতিথি প্রশিক্ষক

বিভাগ: ইলেকট্রিক্যাল ইন্সটলেশন অ্যান্ড মেইনটেন্যান্স

পদের সংখ্যা: ১টি

বেতন: দৈনিক ১২০০ টাকা

শিক্ষাগত যোগ্যতা: সংশ্লিষ্ট বিষয়ে বিএসসি ইঞ্জিনিয়ারিং। ডিপ্লোমা ইন ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের ক্ষেত্রে ৫ বছরের অভিজ্ঞতা থাকতে হবে। সংশ্লিষ্ট বিষয়ে মাস্টার ক্রাফটসম্যান / ফোরম্যানের ক্ষেত্রে ১০ বছরের অভিজ্ঞতা থাকতে হবে।

চাকরির ধরন: অস্থায়ী

৩. পদের নাম: অতিথি প্রশিক্ষক

বিভাগ: ওয়েল্ডিং

পদের সংখ্যা: ১টি

বেতন: দৈনিক ১২০০ টাকা

শিক্ষাগত যোগ্যতা: সংশ্লিষ্ট বিষয়ে বিএসসি ইঞ্জিনিয়ারিং। ডিপ্লোমা ইন ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের ক্ষেত্রে ৫ বছরের অভিজ্ঞতা থাকতে হবে। সংশ্লিষ্ট বিষয়ে মাস্টার ক্রাফটসম্যান / ফোরম্যানের ক্ষেত্রে ১০ বছরের অভিজ্ঞতা থাকতে হবে।

চাকরির ধরন: অস্থায়ী

৪. পদের নাম: অতিথি প্রশিক্ষক

বিভাগ: সুইং মেশিন অপারেটর

পদের সংখ্যা: ১টি

বেতন: দৈনিক ১২০০ টাকা

শিক্ষাগত যোগ্যতা: সংশ্লিষ্ট বিষয়ে বিএসসি ইঞ্জিনিয়ারিং। ডিপ্লোমা ইন ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের ক্ষেত্রে ৫ বছরের অভিজ্ঞতা থাকতে হবে। সংশ্লিষ্ট বিষয়ে মাস্টার ক্রাফটসম্যান / ফোরম্যানের ক্ষেত্রে ১০ বছরের অভিজ্ঞতা থাকতে হবে।

চাকরির ধরন: অস্থায়ী

৫. পদের নাম: অতিথি প্রশিক্ষক

বিভাগ: কনজুমার ইলেকট্রনিক্স

পদের সংখ্যা: ১টি

বেতন: দৈনিক ১২০০ টাকা

শিক্ষাগত যোগ্যতা: সংশ্লিষ্ট বিষয়ে বিএসসি ইঞ্জিনিয়ারিং। ডিপ্লোমা ইন ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের ক্ষেত্রে ৫ বছরের অভিজ্ঞতা থাকতে হবে। সংশ্লিষ্ট বিষয়ে মাস্টার ক্রাফটসম্যান / ফোরম্যানের ক্ষেত্রে ১০ বছরের অভিজ্ঞতা থাকতে হবে।

চাকরির ধরন: অস্থায়ী

৬. পদের নাম: জব প্লেসমেন্ট অফিসার

পদের সংখ্যা: ১টি

বেতন: দৈনিক ১৫০০ টাকা

শিক্ষাগত যোগ্যতা: যেকোনো বিষয়ে মাস্টার্স

চাকরির ধরন: অস্থায়ী

অভিজ্ঞতা: ৩ বছর

খামের ওপরে পদের নাম, মোবাইল নম্বর এবং নিজ জেলা উল্লেখ করতে হবে।

নিয়োগ পরীক্ষায় অংশগ্রহণের জন্য কোনো ধরনের টিএ / ডিএ দেয়া হবে না।

কোনো ধরনের তদবির প্রার্থীর অযোগ্যতা বলে বিবেচিত হবে।

আবেদনপত্র পাঠানোর ঠিকানা: অধ্যক্ষ, কুড়িগ্রাম কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্র, কৃষ্ণপুর, কুড়িগ্রাম।

বিজ্ঞপ্তিটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন।

আরও পড়ুন:
কালেক্টরেট স্কুল অ্যান্ড কলেজে যোগ দিন
আইন উপদেষ্টা নিচ্ছে কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউট
লোকপ্রশাসন বিভাগে প্রভাষক নিচ্ছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়
স্থায়ী ও অস্থায়ী পদে শিক্ষক নিচ্ছে যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়
শিক্ষক নিচ্ছে আর্মি মেডিক্যাল কলেজ বগুড়া

শেয়ার করুন

মন্তব্য

আমাদের সেই সন্তান যেভাবে পেল প্রাণবন্ত জীবন

আমাদের সেই সন্তান যেভাবে পেল প্রাণবন্ত জীবন

ইউনিভার্সিটি অফ টেক্সাসের জিও ক্লাবের প্রেসিডেন্ট প্রান্ত আনন্দময়। ছবি: সংগৃহীত

আজ আর প্রান্তর তোতলামি, ক্লাসরুম ফোবিয়া, হীনম্মন্যতা নেই। যে বাচ্চাটাকে রাজধানীর এক নামজাদা স্কুল প্রায় খুন করে ফেলেছিল, সে এখন ইউনিভার্সিটি অফ টেক্সাসের জিও ক্লাবের প্রেসিডেন্ট, বাংলাদেশ স্টুডেন্ট এসোসিয়েশনের ট্রেজারার।

নিজের ঘরের কথা পরের কাজে লাগতে পারে ভেবে লিখছি।

আমি তখন লেখাপড়া করতে গেছি সুইডেনের মালমো শহরে। সপরিবারে সেখানেই বসবাস, আমাদের পুত্র প্রান্ত আনন্দময়কে ভর্তি করা হলো মালমো শহরের এক স্কুলে।

প্রান্ত খুব কম কথা বলতো। নিজে থেকে প্রায় কিছুই বলতো না। প্রশ্ন করলে জবাব দিতো, কিন্তু দেরিতে।

ভিন্ন দেশের বিভিন্ন বাচ্চার সঙ্গে ভিন্ন ভাষায় জীবনের প্রথম পড়ালেখা শুরু। ছেলেটা ঠিক কেমন যেন বেশি বেশি শান্ত। আমরা ওকে নিয়ে খুব চিন্তিত ছিলাম। প্রথম প্যারেন্ট মিটিংয়ে টিচারদের বললাম, ‘আমাদের ছেলেটার একটা পারসোনালিটি প্রবলেম আছে। ও খুবই কম কথা বলে, মোটেই আলাপি না।’

শিক্ষকরা শুনলেন, গুরুত্ব দিলেন কি না, বুঝলাম না।

এরপরের প্যারেন্ট মিটিংগুলোতে সাধারণত আমার স্ত্রী যেতেন। একবার স্কুল থেকে অনুরোধ এলো যেন প্রান্তর বাবা আসে। গেলাম। প্রধান শিক্ষকের ঘরে ডাক পড়লো।

কী বলবেন এই নিয়ে চিন্তা হচ্ছিলো। প্রধান শিক্ষক পরপর দুটি ছবি দেখিয়ে বললেন, “একবার প্রান্তর ক্লাসের সবাইকে ‘নিজেকে আঁকো’ টাস্ক দেয়া হলো। ২৩ জনের মধ্যে একমাত্র প্রান্তই জুতার ফিতে এঁকেছে। তার মানে ওর পর্যবেক্ষণ ক্ষমতা ডিটেইল্ড, এক্সক্লুসিভ।

আরেকবার প্রত্যেক ছাত্রকে সমান সংখ্যক বিভিন্ন রঙের কলম দিয়ে বলা হয়েছিল, ‘যা খুশি আঁকো’। একমাত্র প্রান্তই সবগুলো রঙ ব্যবহার করেছে। বাকিরা আশপাশের পরিচিত নানান বস্তু এঁকেছে, কিন্তু একমাত্র প্রান্তই যা এঁকেছে তা কিছুই না, অথচ তার দিকে অনেকক্ষণ তাকিয়ে থাকা যায়, দেখতে ভালো লাগে।”

এরপর তিনি বললেন, ‘মিস্টার হোসেন, আপনি বলেছিলেন প্রান্তর একটা পারসোনালিটি প্রবলেম আছে। আমরা এই তিন মাস ওকে পর্যবেক্ষণ করেছি। আসলে কম কথা বলা বা আলাপি না হওয়াটা ওর পারসোনালিটি প্রবলেম নয়। এটাই ওর পারসোনালিটি। ও হয়ত জীবনে কম কথা বলবে, কম দৌড়াদৌড়ি করবে, কিন্তু ওর ভাবনা প্রকাশে অন্য কোনো উপায় বের করবে এবং যা হবে মোর ডিটেইলড, মোর বিউটিফুল; অনেকক্ষণ তাকিয়ে থাকার মতো।’

দুই বছর পর সবাই ফিরে এলাম। প্রান্তকে রাজধানীর একটি নামকরা ইংলিশ মিডিয়াম স্কুলে ক্লাস থ্রি তে ভর্তি করা হলো।

কয়েক দিন যেতে না যেতেই দেখি ছেলে স্কুলে যেতে চায় না। প্রতিদিন স্কুলের সময় এলেই অস্থিরতা বেড়ে যায়। পেটে ব্যথা, বমি, জ্বর। আঁচ করতে পারলাম সমস্যা।

একদিন স্কুলের খাতাগুলো খুলে দেখি অজস্র লাল কালির দাগ। সুইডেন ওকে নিজের মতো করে চিন্তা করা এবং সেইভাবে লেখা শিখিয়েছিল। ও সেটাই এখানে করে সব বিষয়ে জিরো পাচ্ছে!

ওর কাছ থেকে স্কুলে আরও সব নিষ্ঠুরতা আর কর্কশ ব্যবহারের খবর পেলাম। পকেটে একদিন একটা ছোট্ট খেলনা পেয়ে, ব্ল্যাকবোর্ডে লেখা পড়তে না পারার কারণে (বাইরের আলোর রিফ্লেকশনের কারণে ও যেখানে বসেছিল সেখান থেকে বোর্ডের লেখা পড়া যাচ্ছিল না) কীভাবে ওকে অপদস্ত করেছে, সব জানলাম।

আমি ওকে বললাম, ‘নো ওরি বেটা, স্কুলে যেতে হবে না।’

স্কুল বন্ধ করে দিলাম।

কিন্তু ওর ম্রিয়মানতা যেন আরও বাড়লো, সঙ্গে যুক্ত হলো তোতলামি। ডাক্তারের সঙ্গে আলাপ করে জানলাম, ও এক ধরনের সাইকোসোম্যাটিক ডিসঅর্ডারে ভুগছে।

প্রায় চার বছর ও বাড়িতেই থাকলো। পড়ায় কোনো চাপ দিই না। মাঝে মাঝে পাড়ার স্কুলে নিয়ে যেতাম। হেড স্যারকে বলেছিলাম, ‘আপনাকে সব ফিস দেবো, কিন্তু আমার ছেলেকে কোন প্রশ্ন করবেন না, কোনো পরীক্ষা নেবেন না। কেবল মাঝে মাঝে ওকে নিয়ে আসবো, ইচ্ছা হলে একটু বসবে, না হলে বসবে না।’
বাসার কাছে মতিঝিল বয়েজ স্কুলের মাঠে তাকে বিকেলে মাঝে মাঝে খেলতে নিয়ে যেতাম। এর মাঝে ভর্তি পরীক্ষা হয়, ছেলেরা ইউনিফর্ম পরে স্কুল শেষে বাসায় যায়, প্রান্ত দেখে।

একবার ক্লাস সিক্সের ভর্তি পরীক্ষায় তাকে ‘এমনি এমনিই’ অংশ নিতে বলি। বলি, ‘দিয়ে দেখো, চান্স পেতেই হবে এমন তো না।’

সে পরীক্ষা দেয় এবং চান্স পেয়ে যায়। আমরা বলি, ‘দেখো, স্কুলে যেতে চাইলে যাও, না যেতে চাইলে যেও না।’
প্রান্ত দুলকি চালে স্কুল শুরু করলো। স্কুলে যায়-আসে, মাঝে মাঝে যায় না, পড়ে না। সারাদিন কম্পিউটারে গেইম খেলে, আর একা একা ফাটনাটকি কী সব করে।

এভাবে একদিন এসএসসি পরীক্ষার তারিখ পড়ে, আমরা বলি, ‘দিতে চাইলে দাও, মন না চাইলে দিও না। এমন তো না যে পাশ করতেই হবে।’

সে পরীক্ষা দেয়। প্রথম সারির রেজাল্টই করে।

আমি তাকে তার চেয়ে লম্বায় বড় একটা বোয়াল মাছ কিনে উপহার দিই। স্কুলেই নাইম, রাফি, শাওন, রিফাত, নাবিদ নামে তার বেশ কিছু বন্ধু হয়। তাদেরকেও আমরা পুত্রবৎ স্নেহ করতে থাকি (এখনও করি)।

আমরা চাচ্ছিলাম সে কো এডুকেশন কলেজে পড়ুক। মেয়েদের সঙ্গে মিশুক। তাতে আত্মবিশ্বাস বাড়বে, নিজের প্রতি খেয়াল বাড়বে, তোতলামি কাটবে।

সে বুয়েট কলেজে ভর্তি হলো। সেখানে মেয়েরাও পড়ে। আশ্বস্ত হলাম, যাক, ছেলেটা এবার কথা বলা শিখবে।

সে যে কী পড়ে, কখন পড়ে, আদৌ পড়ে কিনা- আমরা বুঝি না। কেবল খেয়াল রাখি মনটা তার আনন্দে আছে কি না। আমাদের মনে হয়, তার বেঁচে থাকাটাই এই অসুস্থ প্রতিযোগিতায় ‘সফল’ হওয়ার চেয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ণ।

এইসএসসির রেজাল্টও হলো উপরের দিকে। তখনও আমরা ওর উপর কোনো প্রত্যাশার বোঝা চাপিয়ে দিই না। ছেড়ে দিই ওর উপরে, পড়ো যা মনে চায়।

অন্য বিষয়ে চান্স পেলেও সে ভর্তি হলো জাবির আইবিএতে। এই প্রথম তার মধ্যে লেখাপড়ায় উৎসাহ দেখলাম। প্রথম বছরে খুব ভালো করতে থাকলো। ক্যাম্পাসে গান বাজনাও করে, ফটোগ্রাফি করে। অনেক অনেক বছর পর আমরা যেন হাঁফ ছেড়ে বাঁচলাম।

তবে একদিন আইবিএর একজন টিচার ফোন করলেন আমাকে। তার মূল কথা হলো, “আপনার ছেলে বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন চৌকশ ছেলে, কিন্তু তার রেজাল্ট খুব খারাপ হচ্ছে। বারবার সতর্ক করেও উন্নতি হচ্ছে না। এমন রেজাল্টের কাউকে আইবিএতে রাখা সম্ভব নয়। এই সেমিস্টারে ‘উন্নতি’ না হলে তাকে পরের ইয়ারে উঠতে দেয়া হবে না।”

আবার সেই শিশুকালের আতংক পেয়ে বসলো মনে। ওর সঙ্গে কথা বলে জানলাম, আইবিএতে পড়ে আর সে কোনো আগ্রহ পাচ্ছে না। এই পড়াটার মধ্যে কেবল উপার্জন আর পুঁজির কায়দা ছাড়া পৃথিবীর জন্যে কোনো উপকার নেই। তাই সে আইবিএতে পড়বে না, বিদেশে পরিবেশ নিয়ে পড়বে।

তথাস্তু। শিশুকালের দুই ক্লাস বাদে সে বাংলা মিডিয়ামেই পড়েছে।

আইইএলটিএসের কোর্সও করেনি, তবে স্কোর করলো আট। বুঝলাম গেইম খেলা আর মুভি দেখা কাজে লেগেছে। ইংরেজি শেখানোর জন্যে বাচ্চাকে ইংলিশ মিডিয়ামে অনেক টাকা দিয়ে পড়ানোর দরকার হয়নি দেখে স্বস্তি পেলাম।

প্রান্ত কিন্তু কানাডায় যেতে যেতেও গেল না। শেষে আমেরিকায় গিয়ে জিও সায়েন্স পড়া শুরু করল।

এখন সে তার পড়ালেখা আর কাজে খুব আনন্দ পাচ্ছে। মিলিয়ন বছরের পুরনো একটা ফসিল যখন যখন খুঁজে পায়, তখন তার চোখে যে আনন্দ দেখি, তাতে অন্তর কান্নায় ভিজে যায় আমার।

আজ আর তার তোতলামি, ক্লাসরুম ফোবিয়া, হীনম্মন্যতা নেই। যে বাচ্চাটাকে রাজধানীর এক নামজাদা স্কুল প্রায় খুন করে ফেলেছিল, সে এখন ইউনিভার্সিটি অফ টেক্সাসের জিও ক্লাবের প্রেসিডেন্ট, বাংলাদেশ স্টুডেন্ট এসোসিয়েশনের ট্রেজারার।

আইরনি অফ দ্য ফেইট ইজ- যে আইবিএর প্রতি সে একদা ‘আগ্রহ’ হারিয়েছিল, সেইখানেরই এক ছাত্রীর সঙ্গে সে একটা সফল প্রেমও করে ফেলেছে!

সন্তানকে ‘সফল’ হয়ে পিতামাতাকে গর্বিত করতে হবে- এই ধারণা সন্তানের মনে একটা চাপ তৈরি করে। আমরা গোড়া থেকেই বিশ্বাস করেছি, ‘গর্বিত যদি হতেই হয়, নিজেদের কাজের জন্যে হতে হবে।’

‘পিতামাতাকে গর্বিত করার চাপ’ সন্তানের স্বাভাবিক বিকাশের অন্তরায়। সন্তান হলেও আমাদের সবার জীবন আলাদা, আনন্দের অনুভব আলাদা। তাই তাকে বলেছি, ‘live your life, as long as you keep on smiling, I am happy.’

লেখক: জাতিসংঘের আবাসিক সমন্বয়কারীর দপ্তরের হিউম্যান রাইটস অফিসার।

আরও পড়ুন:
কালেক্টরেট স্কুল অ্যান্ড কলেজে যোগ দিন
আইন উপদেষ্টা নিচ্ছে কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউট
লোকপ্রশাসন বিভাগে প্রভাষক নিচ্ছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়
স্থায়ী ও অস্থায়ী পদে শিক্ষক নিচ্ছে যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়
শিক্ষক নিচ্ছে আর্মি মেডিক্যাল কলেজ বগুড়া

শেয়ার করুন

রাঙ্গামাটি নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে চাকরি

রাঙ্গামাটি নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে চাকরি

খামের ওপরে পদের নাম এবং নিজ জেলা উল্লেখ করতে হবে। নিয়োগ পরীক্ষায় অংশগ্রহণের জন্য কোনো ধরনের টিএ / ডিএ দেয়া হবে না।

রাঙ্গামাটি নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের শূন্য পদে জনবল নিয়োগের জন্য বিজ্ঞপ্তি দেয়া হয়েছে। আগ্রহী প্রার্থীকে ৮ ফেব্রুয়ারির মধ্যে ডাকে আবেদনপত্র পাঠাতে হবে।

.

১. পদের নাম: স্টেনোগ্রাফার (সাঁটলিপিকার)

পদের সংখ্যা: ১টি

বেতন গ্রেড: ১৩

বেতন স্কেল: ১১০০০-২৬৫৯০ টাকা

শিক্ষাগত যোগ্যতা: এইচএসসি

বয়স: ১৮ থেকে ৩০ বছর

অভিজ্ঞতা: নিষ্প্রয়োজন

.

২. পদের নাম: গাড়িচালক

পদের সংখ্যা: ১টি

বেতন গ্রেড: ১৬

বেতন স্কেল: ৯৩০০-২২৪৯০ টাকা

শিক্ষাগত যোগ্যতা: অষ্টম শ্রেণি

বয়স: ১৮ থেকে ৩০ বছর

অভিজ্ঞতা: অভিজ্ঞদের অগ্রাধিকার

.

৩. পদের নাম: অফিস সহায়ক

পদের সংখ্যা: ১টি

বেতন গ্রেড: ২০

বেতন স্কেল: ৮২৫০-২০০১০ টাকা

শিক্ষাগত যোগ্যতা: অষ্টম শ্রেণি

বয়স: ১৮ থেকে ৩০ বছর

অভিজ্ঞতা: নিষ্প্রয়োজন

.

২০২২ সালের ৮ ফেব্রুয়ারি প্রার্থীর বয়স ১৮ থেকে ৩০ বছরের মধ্যে হতে হবে।

শারীরিক প্রতিবন্ধী, মুক্তিযোদ্ধা, শহীদ মুক্তিযোদ্ধার সন্তান-পোষ্যদের ক্ষেত্রে বয়স ৩২ বছর পর্যন্ত শিথিলযোগ্য।

বয়স প্রমাণের ক্ষেত্রে এফিডেভিট গ্রহণযোগ্য হবে না।

প্রার্থীকে নির্ধারিত ফরমে আবেদন করতে হবে। ফরম পেতে এখানে ক্লিক করুন।

১ নম্বর পদের জন্য ১০০ টাকা এবং ২ ও ৩ নম্বর পদের জন্য ৫০ টাকা ট্রেজারি চালানের মাধ্যমে ১-২১৪১-০০০০-২০৩১ নম্বর কোডে জমা দিয়ে চালানের মূলকপি আবেদনপত্রের সঙ্গে সংযুক্ত করতে হবে।

খামের ওপরে পদের নাম এবং নিজ জেলা উল্লেখ করতে হবে।

নিয়োগ পরীক্ষায় অংশগ্রহণের জন্য কোনো ধরনের টিএ / ডিএ দেয়া হবে না।

বিজ্ঞপ্তিটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন।

আরও পড়ুন:
কালেক্টরেট স্কুল অ্যান্ড কলেজে যোগ দিন
আইন উপদেষ্টা নিচ্ছে কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউট
লোকপ্রশাসন বিভাগে প্রভাষক নিচ্ছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়
স্থায়ী ও অস্থায়ী পদে শিক্ষক নিচ্ছে যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়
শিক্ষক নিচ্ছে আর্মি মেডিক্যাল কলেজ বগুড়া

শেয়ার করুন

রাজশাহী প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে ৫৮ চাকরি

রাজশাহী প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে ৫৮ চাকরি

অনলাইনে আবেদনের সময় এসএসএল সার্ভিসের মাধ্যমে শিক্ষক ও কর্মকর্তা পদের জন্য ৫০০ টাকা এবং কর্মচারী পদের জন্য ২০০ টাকা পরিশোধ করতে হবে।

রাজশাহী প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের শূন্য পদে জনবল নিয়োগের জন্য বিজ্ঞপ্তি দেয়া হয়েছে। আগ্রহী প্রার্থীকে ৮ ফেব্রুয়ারির মধ্যে অনলাইনে পূরণকৃত ফরম জমা দিতে হবে।

.

১. পদের নাম: অধ্যাপক

বিভাগ: ইটিই

পদের সংখ্যা: ১টি

বেতন গ্রেড:

বেতন স্কেল: ৫৬৫০০-৭৪৪০০ টাকা

শিক্ষাগত যোগ্যতা: পিএইচডি

অভিজ্ঞতা: ১০ বছর

.

২. পদের নাম: সহযোগী অধ্যাপক

বিভাগ: ত ও ই কৌশল, যন্ত্র কৌশল, ইটিই

পদের সংখ্যা: প্রতি পদে ১টি করে মোট ৩টি

বেতন গ্রেড:

বেতন স্কেল: ৫০০০০-৭১২০০ টাকা

শিক্ষাগত যোগ্যতা: পিএইচডি

অভিজ্ঞতা: ৭ বছর

.

৩. পদের নাম: সহকারী প্রোগ্রামার

বিভাগ: ইটিই

পদের সংখ্যা: ১টি

বেতন গ্রেড:

বেতন স্কেল: ২২০০০-৫৩০৬০ টাকা

শিক্ষাগত যোগ্যতা: স্নাতক / স্নাতকোত্তর

অভিজ্ঞতা: ডিপ্লোমার ক্ষেত্রে ৫ বছর

.

৪. পদের নাম: টেকনিক্যাল অফিসার

বিভাগ: ইউআরপি, আর্কিটেকচার, বিইসিএম, ইসিই, এমটিই, সিএফপিই

পদের সংখ্যা: ৬টি

বেতন গ্রেড:

বেতন স্কেল: ২২০০০-৫৩০৬০ টাকা

শিক্ষাগত যোগ্যতা: বিএসসি / ডিপ্লোমা

অভিজ্ঞতা: ডিপ্লোমার ক্ষেত্রে ৫ বছর

.

৫. পদের নাম: সহকারী টেকনিক্যাল অফিসার

বিভাগ: আইপিই, জিসিই, এমএসই, এমটিই, বিইসিএম, ইউআরপি, রসায়ন

পদের সংখ্যা: ৭টি

বেতন গ্রেড: ১০

বেতন স্কেল: ১৬০০০-৩৮৬৪০ টাকা

শিক্ষাগত যোগ্যতা: ডিপ্লোমা / বিএসসি

অভিজ্ঞতা: ডিপ্লোমার ক্ষেত্রে ৪ / বিএসসির ক্ষেত্রে ৪ বছর

.

৬. পদের নাম: উপসহকারী প্রকৌশলী (ড্রাফটিং)

বিভাগ: ত ও ই, আর্কিটেকচার, যন্ত্রকৌশল

পদের সংখ্যা: ৩টি

বেতন গ্রেড: ১০

বেতন স্কেল: ১৬০০০-৩৮৬৪০ টাকা

শিক্ষাগত যোগ্যতা: ডিপ্লোমা

অভিজ্ঞতা: নিষ্প্রয়োজন

.

৭. পদের নাম: জুনিয়র ইন্সট্রুমেন্ট ইঞ্জিনিয়ার

বিভাগ: ত ও ই, যন্ত্র, পুর, জিসিই

পদের সংখ্যা: ৪টি

বেতন গ্রেড: ১০

বেতন স্কেল: ১৬০০০-৩৮৬৪০ টাকা

শিক্ষাগত যোগ্যতা: ডিপ্লোমা

অভিজ্ঞতা: নিষ্প্রয়োজন

.

৮. ক. পদের নাম: ল্যাব টেকনিশিয়ান

পদের সংখ্যা: ৯টি

বেতন গ্রেড: ১৩

বেতন স্কেল: ১১০০০-২৬৫৯০ টাকা

শিক্ষাগত যোগ্যতা: বিএসসি / ডিপ্লোমা / এইচএসসি

অভিজ্ঞতা: এইচএসসির ক্ষেত্রে ৫ বছর

.

খ. পদের নাম: হার্ডওয়্যার / নেটওয়ার্ক টেকনিশিয়ান

পদের সংখ্যা: ১টি

বেতন গ্রেড: ১৩

বেতন স্কেল: ১১০০০-২৬৫৯০ টাকা

শিক্ষাগত যোগ্যতা: বিএসসি / ডিপ্লোমা / এইচএসসি

অভিজ্ঞতা: এইচএসসির ক্ষেত্রে ৫ বছর

.

৯. পদের নাম: ল্যাব অ্যাসিস্ট্যান্ট

বিভাগ: ত ও ই, যন্ত্র, পুর

পদের সংখ্যা: ৩টি

বেতন গ্রেড: ১৫

বেতন স্কেল: ৯৭০০-২৩৪৯০ টাকা

শিক্ষাগত যোগ্যতা: বিএসসি / এইচএসসি

অভিজ্ঞতা: এইচএসসির ক্ষেত্রে ৩ বছর

.

১০. পদের নাম: ল্যাব অ্যাটেনডেন্ট

পদের সংখ্যা: ৮টি

বেতন গ্রেড: ১৯

বেতন স্কেল: ৮৫০০-২০৫৭০ টাকা

শিক্ষাগত যোগ্যতা: এসএসসি

অভিজ্ঞতা: নিষ্প্রয়োজন

.

১১. পদের নাম: অ্যাটেনডেন্ট

পদের সংখ্যা: ১টি

বেতন গ্রেড: ১৯

বেতন স্কেল: ৮৫০০-২০৫৭০ টাকা

শিক্ষাগত যোগ্যতা: এসএসসি / জেএসসি

অভিজ্ঞতা: নিষ্প্রয়োজন

.

১২. পদের নাম: কুক

পদের সংখ্যা: ১টি

বেতন গ্রেড: ১৯

বেতন স্কেল: ৮৫০০-২০৫৭০ টাকা

শিক্ষাগত যোগ্যতা: এসএসসি

অভিজ্ঞতা: ৩ বছর

.

১৩. পদের নাম: গার্ড

পদের সংখ্যা: ৮টি

বেতন গ্রেড: ২০

বেতন স্কেল: ৮২৫০-২০০১০ টাকা

শিক্ষাগত যোগ্যতা: এসএসসি / সমমান / জেএসসি

অভিজ্ঞতা: নিষ্প্রয়োজন

.

১৪. পদের নাম: অ্যাসিস্ট্যান্ট কুক

পদের সংখ্যা: ২টি

বেতন গ্রেড: ২০

বেতন স্কেল: ৮২৫০-২০০১০ টাকা

শিক্ষাগত যোগ্যতা: এসএসসি / সমমান / জেএসসি

অভিজ্ঞতা: নিষ্প্রয়োজন

.

প্রার্থীকে অনলাইনে আবেদন ফরম পূরণ করতে হবে। ফরম পূরণ করতে এখানে ক্লিক করুন।

অনলাইনে আবেদনের সময় এসএসএল সার্ভিসের মাধ্যমে শিক্ষক ও কর্মকর্তা পদের জন্য ৫০০ টাকা এবং কর্মচারী পদের জন্য ২০০ টাকা পরিশোধ করতে হবে।

অধ্যাপক ও সহযোগী অধ্যাপক পদের জন্য ১০ সেট এবং অন্যান্য পদের জন্য ২ সেট আবেদনপত্র পাঠাতে হবে।

চাকরিরত প্রার্থীদের যথাযথ কর্তৃপক্ষের মাধ্যমে আবেদন করতে হবে।

নিয়োগ পরীক্ষায় অংশগ্রহণের জন্য কোনো ধরনের টিএ / ডিএ দেয়া হবে না।

বিজ্ঞপ্তিটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন।

আরও পড়ুন:
কালেক্টরেট স্কুল অ্যান্ড কলেজে যোগ দিন
আইন উপদেষ্টা নিচ্ছে কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউট
লোকপ্রশাসন বিভাগে প্রভাষক নিচ্ছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়
স্থায়ী ও অস্থায়ী পদে শিক্ষক নিচ্ছে যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়
শিক্ষক নিচ্ছে আর্মি মেডিক্যাল কলেজ বগুড়া

শেয়ার করুন

অষ্টম শ্রেণি পাসে তাঁত বোর্ডে চাকরি, মূল বেতন ২২৪৯০ টাকা

অষ্টম শ্রেণি পাসে তাঁত বোর্ডে চাকরি, মূল বেতন ২২৪৯০ টাকা

আবেদনপত্রের সঙ্গে পরীক্ষার ফি বাবদ ১০০ টাকা মূল্যমানের ব্যাংক ড্রাফট অথবা পে-অর্ডার যুক্ত করতে হবে।

বাংলাদেশ তাঁত বোর্ড ড্রাইভার পদে জনবল নিয়োগের জন্য বিজ্ঞপ্তি দিয়েছে। আগ্রহী প্রার্থীকে ১৩ ফেব্রুয়ারির মধ্যে ডাকে অথবা সরাসরি আবেদনপত্র পাঠাতে হবে।

.

পদের নাম: ড্রাইভার

পদের সংখ্যা: ২টি

বেতন গ্রেড: ১৬

বেতন স্কেল: ৯৩০০-২২৪৯০ টাকা

শিক্ষাগত যোগ্যতা: অষ্টম শ্রেণি

বয়স: ১৮ থেকে ৩০ বছর

অভিজ্ঞতা: ৩ বছর

.

২০২২ সালের ১৩ ফেব্রুয়ারি প্রার্থীর বয়স ১৮ থেকে ৩০ বছরের মধ্যে হতে হবে। তবে শারীরিক প্রতিবন্ধী, মুক্তিযোদ্ধা, শহীদ মুক্তিযোদ্ধার সন্তান-পোষ্যদের ক্ষেত্রে বয়স ৩২ বছর পর্যন্ত শিথিলযোগ্য। বয়স প্রমাণের ক্ষেত্রে এফিডেভিট গ্রহণযোগ্য হবে না।

প্রার্থীকে নির্ধারিত ফরমে আবেদন করতে হবে। ফরম ও প্রবেশপত্রের নমুনা পেতে এখানে ক্লিক করুন।

আবেদনপত্রের সঙ্গে পরীক্ষার ফি বাবদ ১০০ টাকা মূল্যমানের ব্যাংক ড্রাফট অথবা পে-অর্ডার যুক্ত করতে হবে।

খামের ওপরে পদের নাম, নিজ জেলা এবং কোটা (প্রযোজ্য ক্ষেত্রে) উল্লেখ করতে হবে।

এ ছাড়া নিজ ঠিকানাসংবলিত ১০ টাকার ডাকটিকিট যুক্ত ১০ X ৪.৫ ইঞ্চি মাপের একটি ফেরত খাম দিতে হবে।

বিজ্ঞপ্তিটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন।

আরও পড়ুন:
কালেক্টরেট স্কুল অ্যান্ড কলেজে যোগ দিন
আইন উপদেষ্টা নিচ্ছে কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউট
লোকপ্রশাসন বিভাগে প্রভাষক নিচ্ছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়
স্থায়ী ও অস্থায়ী পদে শিক্ষক নিচ্ছে যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়
শিক্ষক নিচ্ছে আর্মি মেডিক্যাল কলেজ বগুড়া

শেয়ার করুন

হিসাবরক্ষক নিচ্ছে বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিল

হিসাবরক্ষক নিচ্ছে বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিল

পদটিতে অস্থায়ীভাবে সাকুল্য বেতনে প্রকল্প চলার সময়ের জন্য নিয়োগ করা হবে।

বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিলের (বিসিসি) ‘গবেষণা ও উন্নয়নের মাধ্যমে তথ্যপ্রযুক্তিতে বাংলা ভাষা সমৃদ্ধকরণ’ প্রকল্পে হিসাবরক্ষক পদে জনবল নিয়োগের জন্য বিজ্ঞপ্তি দিয়েছে। আগ্রহী প্রার্থীকে ৩১ জানুয়ারির মধ্যে অনলাইনে ফরম পূরণের মাধ্যমে আবেদন করতে হবে।

.

পদের নাম: হিসাবরক্ষক

পদের সংখ্যা: ১টি

বেতন গ্রেড: ১৩

শিক্ষাগত যোগ্যতা: বাণিজ্যে স্নাতক / স্নাতকোত্তর

বয়স: সর্বোচ্চ ৩০ বছর

অভিজ্ঞতা: অভিজ্ঞদের অগ্রাধিকার

.

২০২২ সালের ২০ জানুয়ারি প্রার্থীর বয়স সর্বোচ্চ ৩০ বছর হতে পারবে।

প্রার্থীকে অনলাইনে আবেদন ফরম পূরণ করতে হবে। ফরম পূরণ করতে এখানে ক্লিক করুন।

আবেদন করার সময় ‘রকেট’ অথবা ‘বিকাশ’ মোবাইল ব্যাংকিং সিস্টেমের মাধ্যমে ৩০০ টাকা প্রদান করতে হবে।

পদটিতে অস্থায়ীভাবে সাকুল্য বেতনে প্রকল্প চলার সময়ের জন্য নিয়োগ করা হবে।

বিজ্ঞপ্তিটি দেখার জন্য এখানে ক্লিক করুন।

আরও পড়ুন:
কালেক্টরেট স্কুল অ্যান্ড কলেজে যোগ দিন
আইন উপদেষ্টা নিচ্ছে কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউট
লোকপ্রশাসন বিভাগে প্রভাষক নিচ্ছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়
স্থায়ী ও অস্থায়ী পদে শিক্ষক নিচ্ছে যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়
শিক্ষক নিচ্ছে আর্মি মেডিক্যাল কলেজ বগুড়া

শেয়ার করুন

রাজেন্দ্রপুর ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক স্কুল অ্যান্ড কলেজে চাকরি

রাজেন্দ্রপুর ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক স্কুল অ্যান্ড কলেজে চাকরি

নিয়োগপ্রাপ্ত প্রার্থী বাড়ি ভাড়া, উৎসব বোনাস, উৎসাহ ভাতা, শ্রেণি শিক্ষক ভাতা, চিকিৎসা ভাতা, পোশাক ভাতা ও নববর্ষ ভাতা পাবেন।

রাজেন্দ্রপুর ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক স্কুল অ্যান্ড কলেজে শূন্য পদে শিক্ষক ও কর্মচারি নিয়োগ করা হবে। আগ্রহী প্রার্থীকে ২১ জানুয়ারি থেকে ২০ ফেব্রুয়ারির মধ্যে অনলাইনে ফরম পূরণের মাধ্যমে আবেদন করতে হবে।

.

১. পদের নাম: প্রভাষক

ভার্সন: ইংরেজি

বিষয়: গণিত এবং আইসিটি

পদের সংখ্যা: প্রতি বিষয়ে ১ জন করে মোট ২ জন

বেতন স্কেল: ২২০০০-৫৩০৬০ টাকা

শিক্ষাগত যোগ্যতা: স্নাতকসহ (সম্মান) স্নাতকোত্তর

.

২. পদের নাম: সহকারী শিক্ষক

ভার্সন: ইংরেজি

বিষয়: সমাজবিজ্ঞান এবং ইসলাম ও নৈতিক শিক্ষা

পদের সংখ্যা: প্রতি বিষয়ে ১ জন করে মোট ২ জন

বেতন স্কেল: ১৬০০০-৩৮৬৪০ টাকা

শিক্ষাগত যোগ্যতা: স্নাতক (সম্মান)

.

৩. পদের নাম: সহকারী শিক্ষক (নারী)

ভার্সন: বাংলা

বিষয়: বিজ্ঞান

পদের সংখ্যা: ১ জন

বেতন স্কেল: ১৬০০০-৩৮৬৪০ টাকা

শিক্ষাগত যোগ্যতা: স্নাতক (সম্মান)

.

৪. পদের নাম: ল্যাব অ্যাটেনডেন্ট

বিভাগ: আইসিটি ল্যাব এবং বিজ্ঞানাগার ল্যাব

পদের সংখ্যা: প্রতি বিষয়ে ১ জন করে মোট ২ জন

বেতন স্কেল: ৮৮০০-২১৩১০ টাকা

শিক্ষাগত যোগ্যতা: এইচএসসি

.

৫. পদের নাম: আয়া

পদের সংখ্যা: ১টি

বেতন স্কেল: ৮২৫০-২০০১০ টাকা

শিক্ষাগত যোগ্যতা: এসএসসি

.

নিয়োগপ্রাপ্ত প্রার্থী বাড়ি ভাড়া, উৎসব বোনাস, উৎসাহ ভাতা, শ্রেণি শিক্ষক ভাতা, চিকিৎসা ভাতা, পোষাক ভাতা ও নববর্ষ ভাতা পাবেন।

প্রার্থীকে অনলাইনে আবেদন ফরম পূরণ করতে হবে। ফরম পূরণ করতে এখানে ক্লিক করুন।

১ নম্বর পদের জন্য ১০০০ টাকা, ২ ও ৩ নম্বর পদের জন্য ৭০০ টাকা এবং ৪ ও ৫ নম্বর পদের জন্য ৫০০ টাকা অনলাইনে পেমেন্ট করতে হবে।

নিয়োগ পরীক্ষায় অংশগ্রহণের জন্য কোনো ধরনের টিএ/ডিএ দেয়া হবে না।

বিজ্ঞপ্তিটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন।

আরও পড়ুন:
কালেক্টরেট স্কুল অ্যান্ড কলেজে যোগ দিন
আইন উপদেষ্টা নিচ্ছে কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউট
লোকপ্রশাসন বিভাগে প্রভাষক নিচ্ছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়
স্থায়ী ও অস্থায়ী পদে শিক্ষক নিচ্ছে যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়
শিক্ষক নিচ্ছে আর্মি মেডিক্যাল কলেজ বগুড়া

শেয়ার করুন

পানিসম্পদ পরিকল্পনা সংস্থায় ৩৫ চাকরি

পানিসম্পদ পরিকল্পনা সংস্থায় ৩৫ চাকরি

শিক্ষাজীবনের কোনো পর্যায়ে তৃতীয় শ্রেণি অথবা সমমানের জিপিএ থাকলে আবেদন করার প্রয়োজন নেই।

পানিসম্পদ পরিকল্পনা সংস্থা শূন্য পদে জনবল নিয়োগের জন্য বিজ্ঞপ্তি দিয়েছে। আগ্রহী প্রার্থীকে ২৫ জানুয়ারি থেকে ১৬ ফেব্রুয়ারির মধ্যে অনলাইনে ফরম পূরণের মাধ্যমে আবেদন করতে হবে।

.

১. পদের নাম: উপসহকারী প্রকৌশলী / কার্টোগ্রাফার

পদের সংখ্যা: ১৪টি

বেতন গ্রেড: ১০

বেতন স্কেল: ১৬০০০-৩৮৬৪০ টাকা

শিক্ষাগত যোগ্যতা: পুরকৌশলে ডিপ্লোমা

বয়স: ১৮ থেকে ৩০ বছর

অভিজ্ঞতা: ৫ বছর

পরীক্ষার ফি: ৫০০ টাকা

.

২. পদের নাম: হিসাবরক্ষক

পদের সংখ্যা: ৭টি

বেতন গ্রেড: ১৪

বেতন স্কেল: ১০২০০-২৪৬৮০ টাকা

শিক্ষাগত যোগ্যতা: স্নাতক

বয়স: ১৮ থেকে ৩০ বছর

অভিজ্ঞতা: ৫ বছর

পরীক্ষার ফি: ৪০০ টাকা

.

৩. পদের নাম: অফিস সহকারী কাম কম্পিউটার অপারেটর

পদের সংখ্যা: ৭টি

বেতন গ্রেড: ১৬

বেতন স্কেল: ৯৩০০-২২৪৯০ টাকা

শিক্ষাগত যোগ্যতা: এইচএসসি / সমমান

বয়স: ১৮ থেকে ৩০ বছর

অভিজ্ঞতা: নিষ্প্রয়োজন

পরীক্ষার ফি: ৪০০ টাকা

.

৪. পদের নাম: অফিস সহায়ক

পদের সংখ্যা: ৭টি

বেতন গ্রেড: ২০

বেতন স্কেল: ৮২৫০-২০০১০ টাকা

শিক্ষাগত যোগ্যতা: এসএসসি / সমমান

বয়স: ১৮ থেকে ৩০ বছর

অভিজ্ঞতা: নিষ্প্রয়োজন

পরীক্ষার ফি: ৩০০ টাকা

.

২০২২ সালের ১৬ ফেব্রুয়ারি-মার্চ প্রার্থীর বয়স ১৮ থেকে ৩০ বছরের মধ্যে হতে হবে। তবে শারীরিক প্রতিবন্ধী, মুক্তিযোদ্ধা, শহীদ মুক্তিযোদ্ধার সন্তান-পোষ্যদের ক্ষেত্রে বয়স ৩২ বছর পর্যন্ত শিথিলযোগ্য। বয়স প্রমাণের ক্ষেত্রে এফিডেভিট গ্রহণযোগ্য হবে না।

প্রার্থীকে অনলাইনে আবেদন ফরম পূরণ করতে হবে। ফরম পূরণ করতে এখানে ক্লিক করুন।

শিক্ষাজীবনের কোনো পর্যায়ে তৃতীয় শ্রেণি অথবা সমমানের জিপিএ থাকলে আবেদন করার প্রয়োজন নেই।

অনলাইনে আবেদন করতে সমস্যা হলে টেলিটক মোবাইল থেকে ১২১ নম্বরে অথবা [email protected] মেইলে যোগাযোগ করা যাবে। মেইলের সাবজেক্টে প্রতিষ্ঠানের নাম, পোস্ট, ইউজার আইডি এবং কন্টাক্ট নাম্বার উল্লেখ করতে হবে।

বিজ্ঞপ্তিটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন।

আরও পড়ুন:
কালেক্টরেট স্কুল অ্যান্ড কলেজে যোগ দিন
আইন উপদেষ্টা নিচ্ছে কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউট
লোকপ্রশাসন বিভাগে প্রভাষক নিচ্ছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়
স্থায়ী ও অস্থায়ী পদে শিক্ষক নিচ্ছে যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়
শিক্ষক নিচ্ছে আর্মি মেডিক্যাল কলেজ বগুড়া

শেয়ার করুন