ডেপুটি চিফ সুপারিনটেনডেন্ট নিচ্ছে নিউক্লিয়ার পাওয়ার প্ল্যান্ট কোম্পানি

player
ডেপুটি চিফ সুপারিনটেনডেন্ট নিচ্ছে নিউক্লিয়ার পাওয়ার প্ল্যান্ট কোম্পানি

আবেদন ফরম পূরণের ৭২ ঘণ্টার মধ্যে ৫০০ টাকা টেলিটক প্রিপেইড মোবাইল সংযোগের মাধ্যমে জমা দিতে হবে।

নিউক্লিয়ার পাওয়ার প্ল্যান্ট কোম্পানি বাংলাদেশ লিমিটেড ডেপুটি চিফ সুপারিনটেনডেন্ট পদে জনবল নিয়োগের জন্য বিজ্ঞপ্তি দিয়েছে। আগ্রহী প্রার্থীকে ২৩ ডিসেম্বরের মধ্যে অনলাইনে ফরম পূরণের মাধ্যমে আবেদন করতে হবে।

পদের নাম: ডেপুটি চিফ সুপারিনটেনডেন্ট

পদের সংখ্যা: ২টি

মূল বেতন: ১২৬০০০ টাকা

বয়স: সর্বোচ্চ ৪৮ বছর

অভিজ্ঞতা: ১৪ বছর

২০২০ সালের ২৫ মার্চ প্রার্থীর বয়স ৪৮ বছরের মধ্যে হতে হবে।

নিয়োগপ্রাপ্ত প্রার্থী প্রথম বছর শিক্ষানবিশ হিসেবে কাজ করবেন।

প্রার্থীকে অনলাইনে আবেদন ফরম পূরণ করতে হবে। ফরম পূরণ করতে এখানে ক্লিক করুন।

আবেদন ফরম পূরণের ৭২ ঘণ্টার মধ্যে ৫০০ টাকা টেলিটক প্রিপেইড মোবাইল সংযোগের মাধ্যমে জমা দিতে হবে।

বিজ্ঞপ্তিটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন।

আরও পড়ুন:
সহযোগী অধ্যাপক পদে শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে যোগ দিন
জনবল নিচ্ছে ডাচ্‌-বাংলা ব্যাংক
বিকেএসপি দিচ্ছে ৩৮ নিয়োগ
বিবাহিতের শর্তে কলেজে চাকরি
ডাচ্‌-বাংলা ব্যাংকে যোগ দিন

শেয়ার করুন

মন্তব্য

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে সহযোগী অধ্যাপক পদে চাকরি

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে সহযোগী অধ্যাপক পদে চাকরি

প্রার্থীকে জিওগ্রাফি অ্যান্ড এনভায়রনমেন্ট বিষয়ে উচ্চতর ডিগ্রিধারী হতে হবে। থাকতে হবে পিএইচডি বা সমমানের ডিগ্রি।

জিওগ্রাফি অ্যান্ড এনভায়রনমেন্ট বিভাগে সহযোগী অধ্যাপক নিয়োগের জন্য বিজ্ঞপ্তি দিয়েছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়। আগ্রহী প্রার্থীকে ১৭ ফেব্রুয়ারির মধ্যে নির্ধারিত ফরমে আবেদন করতে হবে।

.

পদের নাম: সহযোগী অধ্যাপক

বিভাগ: জিওগ্রাফি অ্যান্ড এনভায়রনমেন্ট

পদের সংখ্যা: ১টি

চাকরির ধরন: স্থায়ী

বেতন গ্রেড:

বেতন স্কেল: ৫০০০০-৭১২০০ টাকা

অভিজ্ঞতা: ৭ বছর

আবেদন ফি: ১০০০ টাকা

.

প্রার্থীকে জিওগ্রাফি অ্যান্ড এনভায়রনমেন্ট বিষয়ে উচ্চতর ডিগ্রিধারী হতে হবে। থাকতে হবে পিএইচডি বা সমমানের ডিগ্রি।

সার্টিফিকেট, প্রশংসাপত্র, মার্কসিট ও অভিজ্ঞতার প্রমাণপত্রের সত্যায়িত কপিসহ আবেদন করতে হবে।

মোট ১১ কপি দরখাস্ত জমা দিতে হবে।

আবেদনের শেষ তারিখ ১৭ ফেব্রুয়ারি।

বিজ্ঞপ্তিটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন।

আরও পড়ুন:
সহযোগী অধ্যাপক পদে শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে যোগ দিন
জনবল নিচ্ছে ডাচ্‌-বাংলা ব্যাংক
বিকেএসপি দিচ্ছে ৩৮ নিয়োগ
বিবাহিতের শর্তে কলেজে চাকরি
ডাচ্‌-বাংলা ব্যাংকে যোগ দিন

শেয়ার করুন

ম্যানেজমেন্ট ট্রেইনি অফিসার নিচ্ছে ডাচ্‌-বাংলা ব্যাংক

ম্যানেজমেন্ট ট্রেইনি অফিসার নিচ্ছে ডাচ্‌-বাংলা ব্যাংক

প্রার্থীকে বাংলাদেশের নাগরিক হতে হবে এবং দেশের যে কোনো জায়গায় কাজ করতে আগ্রহী হতে হবে।

ডাচ্‌-বাংলা ব্যাংক ম্যানেজমেন্ট ট্রেইনি অফিসার পদে জনবল নিয়োগের জন্য বিজ্ঞপ্তি দিয়েছে। আগ্রহী প্রার্থীকে ১৬ ফেব্রুয়ারির মধ্যে অনলাইনে ফরম পূরণের মাধ্যমে আবেদন করতে হবে।

.

পদের নাম: ম্যানেজমেন্ট ট্রেইনি অফিসার

পদের সংখ্যা: উল্লেখ নেই

বেতন: ৫০০০০ টাকা

শিক্ষাগত যোগ্যতা: মাস্টার্স

বয়স: সর্বোচ্চ ৩০ বছর

.

প্রার্থীকে বাংলাদেশের নাগরিক হতে হবে এবং দেশের যে কোনো জায়গায় কাজ করতে আগ্রহী হতে হবে।

মুক্তিযোদ্ধার সন্তান-পোষ্যদের ক্ষেত্রে বয়স ৩২ বছর পর্যন্ত শিথিলযোগ্য।

নিয়োগপ্রাপ্ত প্রার্থী এক বছর শিক্ষানবিশ হিসেবে কাজ করবেন।

প্রার্থীকে অনলাইনে আবেদন করতে হবে। আবেদন ফরম পূরণের জন্য এখানে ক্লিক করুন।

বিজ্ঞপ্তিটি দেখুন এখানে

আরও পড়ুন:
সহযোগী অধ্যাপক পদে শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে যোগ দিন
জনবল নিচ্ছে ডাচ্‌-বাংলা ব্যাংক
বিকেএসপি দিচ্ছে ৩৮ নিয়োগ
বিবাহিতের শর্তে কলেজে চাকরি
ডাচ্‌-বাংলা ব্যাংকে যোগ দিন

শেয়ার করুন

নাটোর জেলা পরিষদে চাকরি

নাটোর জেলা পরিষদে চাকরি

খামের ওপরে পদের নাম, কোটা এবং নিজ জেলা উল্লেখ করতে হবে। নিয়োগ পরীক্ষায় অংশগ্রহণের জন্য কোনো ধরনের টিএ / ডিএ দেয়া হবে না।

শূন্য পদে জনবল নিয়োগের জন্য বিজ্ঞপ্তি দিয়েছে নাটোর জেলা পরিষদ। আগ্রহী প্রার্থীকে ১৬ ফেব্রুয়ারির মধ্যে ডাকে আবেদনপত্র পোঁছাতে হবে।

.

১. পদের নাম: অফিস সহকারী কাম কম্পিউটার মুদ্রাক্ষরিক

পদের সংখ্যা: ১টি

বেতন গ্রেড: ১৬

বেতন স্কেল: ৯৩০০-২২৪৯০ টাকা

শিক্ষাগত যোগ্যতা: এইচএসসি / সমমান

বয়স: ১৮ থেকে ৩০ বছর

.

২. পদের নাম: অফিস সহায়ক

পদের সংখ্যা: ৩টি

বেতন গ্রেড: ২০

বেতন স্কেল: ৮২৫০-২০০১০ টাকা

শিক্ষাগত যোগ্যতা: এসএসসি / সমমান

বয়স: ১৮ থেকে ৩০ বছর

.

৩. পদের নাম: পরিচ্ছন্নতাকর্মী

পদের সংখ্যা: ১টি

বেতন গ্রেড: ২০

বেতন স্কেল: ৮২৫০-২০০১০ টাকা

শিক্ষাগত যোগ্যতা: অষ্টম শ্রেণি / সমমান

বয়স: ১৮ থেকে ৩০ বছর

.

প্রার্থীকে বাংলাদেশের নাগরিক এবং নাটোর জেলার স্থায়ী বাসিন্দা হতে হবে।

২০২২ সালের ১৬ ফেব্রুয়ারি প্রার্থীর বয়স ১৮ থেকে ৩০ বছরের মধ্যে হতে হবে। তবে শারীরিক প্রতিবন্ধী, মুক্তিযোদ্ধা, শহীদ মুক্তিযোদ্ধার সন্তান-পোষ্যদের ক্ষেত্রে বয়স ৩২ বছর পর্যন্ত শিথিলযোগ্য। বয়স প্রমাণের ক্ষেত্রে এফিডেভিট গ্রহণযোগ্য হবে না।

আবেদনপত্রের সঙ্গে ১ নম্বর পদের জন্য ৩০০ টাকা এবং ২ ও ৩ নম্বর পদের জন্য ২০০ টাকা মূল্যের পে-অর্ডার / ব্যাংক ড্রাফট জমা দিতে হবে।

এ ছাড়া নিজ ঠিকানাসংবলিত ১৫ টাকার ডাকটিকিট যুক্ত ৯.৫ X ৪.৫ ইঞ্চি মাপের একটি ফেরত খাম দিতে হবে।

খামের ওপরে পদের নাম, কোটা এবং নিজ জেলা উল্লেখ করতে হবে।

নিয়োগ পরীক্ষায় অংশগ্রহণের জন্য কোনো ধরনের টিএ / ডিএ দেয়া হবে না।

বিজ্ঞপ্তিটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন।

আরও পড়ুন:
সহযোগী অধ্যাপক পদে শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে যোগ দিন
জনবল নিচ্ছে ডাচ্‌-বাংলা ব্যাংক
বিকেএসপি দিচ্ছে ৩৮ নিয়োগ
বিবাহিতের শর্তে কলেজে চাকরি
ডাচ্‌-বাংলা ব্যাংকে যোগ দিন

শেয়ার করুন

কুমিল্লা জেলা পরিষদে চাকরি

কুমিল্লা জেলা পরিষদে চাকরি

খামের ওপরে পদের নাম এবং নিজ জেলা উল্লেখ করতে হবে। চাকরিরত প্রার্থীদের যথাযথ কর্তৃপক্ষের মাধ্যমে আবেদন করতে হবে।

শূন্য পদে জনবল নিয়োগের জন্য বিজ্ঞপ্তি দিয়েছে কুমিল্লা জেলা পরিষদ। আগ্রহী প্রার্থীকে ১৭ ফেব্রুয়ারির মধ্যে ডাকে অথবা সরাসরি আবেদনপত্র পৌঁছাতে হবে।

.

১. পদের নাম: সাঁটলিপিকার

পদের সংখ্যা: ১টি

বেতন গ্রেড: ১৩

বেতন স্কেল: ১১০০০-২৬৫৯০ টাকা

শিক্ষাগত যোগ্যতা: এইচএসসি / সমমান

বয়স: ১৮ থেকে ৩০ বছর

.

২. পদের নাম: উচ্চমান সহকারী

পদের সংখ্যা: ১টি

বেতন গ্রেড: ১৪

বেতন স্কেল: ১০২০০-২৪৬৮০ টাকা

শিক্ষাগত যোগ্যতা: স্নাতক

বয়স: ১৮ থেকে ৩০ বছর

.

৩. পদের নাম: নিম্নমান সহকারী কাম মুদ্রাক্ষরিক / কম্পিউটার অপারেটর

পদের সংখ্যা: ১টি

বেতন গ্রেড: ১৬

বেতন স্কেল: ৯৩০০-২২৪৯০ টাকা

শিক্ষাগত যোগ্যতা: এইচএসসি / সমমান

বয়স: ১৮ থেকে ৩০ বছর

.

৪. পদের নাম: বার্তাবাহক

পদের সংখ্যা: ১টি

বেতন গ্রেড: ২০

বেতন স্কেল: ৮২৫০-২০০১০ টাকা

শিক্ষাগত যোগ্যতা: অষ্টম শ্রেণি

বয়স: ১৮ থেকে ৩০ বছর

.

৫. পদের নাম: প্রহরী

পদের সংখ্যা: ১টি

বেতন গ্রেড: ২০

বেতন স্কেল: ৮২৫০-২০০১০ টাকা

শিক্ষাগত যোগ্যতা: অষ্টম শ্রেণি

বয়স: ১৮ থেকে ৩০ বছর

.

প্রার্থীকে বাংলাদেশের নাগরিক হতে হবে।

২০২২ সালের ১৭ ফেব্রুয়ারি প্রার্থীর বয়স ১৮ থেকে ৩০ বছরের মধ্যে হতে হবে। তবে শারীরিক প্রতিবন্ধী, মুক্তিযোদ্ধা, শহীদ মুক্তিযোদ্ধার সন্তান-পোষ্যদের ক্ষেত্রে বয়স ৩২ বছর পর্যন্ত শিথিলযোগ্য। বয়স প্রমাণের ক্ষেত্রে এফিডেভিট গ্রহণযোগ্য হবে না।

প্রার্থীকে নির্ধারিত ফরমে আবেদন করতে হবে। ফরম পেতে এখানে ক্লিক করুন।

আবেদনপত্রের সঙ্গে ১ থেকে ৩ নম্বর পদের জন্য ৫০০ টাকা এবং ৪ ও ৫ নম্বর পদের জন্য ২০০ টাকা মূল্যের পে-অর্ডার / ব্যাংক ড্রাফট জমা দিতে হবে।

এ ছাড়া নিজ ঠিকানাসংবলিত ১০ টাকার ডাকটিকিট যুক্ত ১০.৫ X ৪.৫ ইঞ্চি মাপের একটি ফেরত খাম দিতে হবে।

খামের ওপরে পদের নাম এবং নিজ জেলা উল্লেখ করতে হবে।

চাকরিরত প্রার্থীদের যথাযথ কর্তৃপক্ষের মাধ্যমে আবেদন করতে হবে।

একজন প্রার্থী শুধু একটি পদেই আবেদন করতে পারবেন।

নিয়োগ পরীক্ষায় অংশগ্রহণের জন্য কোনো ধরনের টিএ / ডিএ দেয়া হবে না।

বিজ্ঞপ্তিটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন।

আরও পড়ুন:
সহযোগী অধ্যাপক পদে শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে যোগ দিন
জনবল নিচ্ছে ডাচ্‌-বাংলা ব্যাংক
বিকেএসপি দিচ্ছে ৩৮ নিয়োগ
বিবাহিতের শর্তে কলেজে চাকরি
ডাচ্‌-বাংলা ব্যাংকে যোগ দিন

শেয়ার করুন

দুই বছর আগের কথা রাখলেন বান কি মুন

দুই বছর আগের কথা রাখলেন বান কি মুন

বান কি মুনের সঙ্গে এম মিরাজ হোসেন। ছবি: সংগৃহীত

মিরাজ হোসেন লেখেন, ‘আমার মত অধমের কথা উনি মনে রেখেছেন এবং তার বান-কি-মুন সেন্টার ফর গ্লোবাল সিভিলাইজেশনে “টেরিটরি এক্সিকিউটিভ” হিসেবে যোগ দেওয়ার জন্য উপযুক্ত মনে করেছেন, সে জন্য আমি প্রথমেই মহান আল্লাহ তায়ালার প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি। ধন্যবাদ জানাচ্ছি বান কি মুনকে এবং তার ফাউন্ডেশনকে।’

দুই বছর আগে এক অনুষ্ঠানে জাতিসংঘের অষ্টম মহাসচিব বান কি মুন এম মিরাজ হোসেন নামের এক বাংলাদেশিকে তার বান কি মুন সেন্টার ফর গ্লোবাল সিভিলাইজেশনের যুক্ত করার আশ্বাস দিয়েছিলেন।

গত ১৪ জানুয়ারি সত্যিই বান কি মুন সেন্টার থেকে এম মিরাজ হোসেনের কাছে আসে একটি চিঠি; যেখানে স্বাক্ষর করেছেন স্বয়ং বান কি মুন।

চিঠিতে বলা হয়েছে, ‘সবার জন্য বান কি মুন সেন্টার ফর গ্লোবাল সিভিলাইজেশনে যুক্ত হওয়ার জন্য আপনাকে আমন্ত্রণ।’

এমন চিঠিতে আবেগ আপ্লুত এম মিরাজ হোসেন। তিনি তার ফেসবুক স্ট্যাটাসে লিখেছেন, ‘মানুষের জীবনে কিছু মুহূর্ত, ক্ষণ আসে যা কল্পনাতীত। জাতিসংঘের মহাসচিব থাকাকালীন বান কি মুনের সঙ্গে আমার একটি অনুষ্ঠানে দেখা হয়েছিল। অনুষ্ঠানের এক ফাঁকে উনি হেসে বলেছিলেন তোমাকে আমার ফাউন্ডেশনে যুক্ত করব, রেডি থেকো। ব্যাপারটাকে আমি হাসি-তামাশা হিসেবে নিয়েছিলাম।’

‘কিন্তু দুই বছর পর সেই ইনভাইটেশন হাতে পেয়ে আমি বিশ্বাস করতে পারছিলাম না। আসলে যারা এত উচ্চতায় ওঠেন তাদের মুখের কথা এবং তাদের স্মরণশক্তি যে কত প্রখর তা এ থেকেই বোঝা যায়।’

চিঠিতে বান কি মুন ফাউন্ডেশন সম্পর্কে বলা হয়েছে, ফাউন্ডেশনটি সফলতার সঙ্গে স্থানীয় ও আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের মান উন্নয়নে কাজ করছে। ফাউন্ডেশনটি বয়স, লিঙ্গ, পরিচয়, ধর্ম এবং জাতীয়তা নির্বিশেষে বিশ্বের সবার জন্য মানবাধিকার প্রতিষ্ঠায় সংগ্রাম করছে। আন্তর্জাতিক বিভিন্ন সংস্থা ও ব্যক্তির সঙ্গে যুক্ত হয়ে ফাউন্ডেশনটি সামাজিক নানা সমস্যা সমাধানে কাজ করছে।

‘আপনাকে আমাদের প্রতিষ্ঠানে যুক্ত করায় সম্মানিত বোধ করছি। আপনার স্থানীয় ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ে স্বেচ্ছাসেবকবিষয়ক জ্ঞান আমাদের এগিয়ে যেতে সহায়ক হবে।’

মিরাজ হোসেন তার স্ট্যাটাসে আরও লেখেন, ‘আমার মতো অধমের কথা উনি মনে রেখেছেন এবং তার বান কি মুন সেন্টার ফর গ্লোবাল সিভিলাইজেশনে “টেরিটরি এক্সিকিউটিভ” হিসেবে যোগ দেয়ার জন্য উপযুক্ত মনে করেছেন, সে জন্য আমি প্রথমেই মহান আল্লাহ তায়ালার প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি। ধন্যবাদ জানাচ্ছি বান কি মুনকে এবং তার ফাউন্ডেশনকে।’

বান কি মুন সেন্টার ফর গ্লোবাল ফাউন্ডেশন ভিয়েনা, অস্ট্রিয়ার একটি আধা-আন্তর্জাতিক সংস্থা। কেন্দ্রটি ২০১৮ সালের জানুয়ারিতে প্রতিষ্ঠিত হয়।

বান কি মুন সেন্টার টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা (এসডিজি) এবং প্যারিস জলবায়ু চুক্তির কাঠামোর মধ্যে নারী ও তরুণদের ক্ষমতায়নের জন্য কাজ করে। ফাউন্ডেশনের প্রকল্পগুলো চারটি স্তরে বিভক্ত। এগুলো হচ্ছে- পরামর্শ, শিক্ষা, নেতৃত্ব এবং শান্তি ও নিরাপত্তা।

মিরাজ হোসেন বাংলাদেশের একজন উদ্যোক্তা; কেয়া কসমেটিকসের পরিচালক। এম জে ট্রেডিংয়ের ব্যবস্থাপনা পরিচালক তিনি।

আরও পড়ুন:
সহযোগী অধ্যাপক পদে শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে যোগ দিন
জনবল নিচ্ছে ডাচ্‌-বাংলা ব্যাংক
বিকেএসপি দিচ্ছে ৩৮ নিয়োগ
বিবাহিতের শর্তে কলেজে চাকরি
ডাচ্‌-বাংলা ব্যাংকে যোগ দিন

শেয়ার করুন

স্বপ্নবাজ এক মেরিনারের গল্প

স্বপ্নবাজ এক মেরিনারের গল্প

স্বপ্নবাজ জহির রায়হানের (বাঁয়ে) সঙ্গে লেখক। ছবি: সংগৃহীত

নাকিলাতে এর আগে কোনো বাংলাদেশি অফিসার ছিলেন না। জহির রায়হান স্যার জয়েন করার এক মাস পরেই কোম্পানি থেকে তার পারফরম্যান্স জানতে চাওয়া হয় চিফ ইঞ্জিনিয়ারের কাছে। স্যারের পারফরম্যান্স এতটাই ভালো ছিল যে, ইন্ডিয়ান চিফ ইঞ্জিনিয়ার তাকে ‘এক্সেপশনালি ট্যালেন্টেড’ হিসেবে রিপোর্ট করেন।

আমাদের সিনিয়র ব্যাচের একজন ছিলেন যিনি একাডেমিতে থাকার সময় স্বনামধন্য কে-লাইন (K-Line) কোম্পানির স্কলারশিপ পরীক্ষা দিতে রাজি হননি। একাডেমির ইতিহাসে এমন নজির আছে কিনা আমার জানা নেই।

বাংলাদেশ মেরিন একাডেমিতে আমাদের সময়ে ডেক আর ইঞ্জিন ডিপার্টমেন্ট থেকে পাঁচ জন করে মোট ১০ জনকে স্কলারশিপ দেয়া হতো। দুই ডিপার্টমেন্টের প্রথম ১৫ জন করে মোট ৩০ জনকে চূড়ান্ত ইন্টারভিউয়ের জন্য ডাকা হতো। সিলেকশনের দিন সকালে কোম্পানির প্রতিনিধিরা ৩০ জনকে ব্রিফিং দেয়ার পর কারো কোনো প্রশ্ন আছে কিনা জিজ্ঞেস করেন।

বরিশাল ক্যাডেট কলেজের ‘কলেজ প্রিফেক্ট’ সেই জহির রায়হান স্যার তখন জিজ্ঞেস করেন, কে-লাইন কোম্পানির কন্টেইনার ছাড়াও অয়েল/কেমিক্যাল, গ্যাস ট্যাংকার আছে, সেক্ষেত্রে পরবর্তীতে এসব ট্যাংকার ফ্লিটে যাওয়ার সুযোগ আছে কিনা।

প্রতিনিধিরা উত্তর দেন, একাডেমি থেকে বাছাই করা হচ্ছে কেবল কন্টেইনার জাহাজের জন্য, ট্যাংকার ফ্লিটে যাওয়ার কোনো সুযোগ নেই। তখন স্যার জানিয়ে দেন, উনি ইন্টারভিউ দেবেন না, কারণ উনার ইচ্ছা ট্যাংকারে চাকরি করার।

এটা শুনে একাডেমির কমান্ড্যান্ট স্যার থেকে সবাই অবাক! স্যারের রেজাল্ট ভালো থাকায় স্কলারশিপ পাওয়ার সম্ভাবনাও অনেক বেশি ছিল। অনেকেই তাকে বলেছিলেন, এত বড় একটা সুযোগ হাতছাড়া করা বোকামি, কে-লাইনের মতো কোম্পানিতে জয়েন করা মেরিনারদের কাছে স্বপ্নের মতো।

তবে এরপরেও তিনি ট্যাংকারে জয়েন করার ইচ্ছায় অবিচল থাকেন এবং কোনো স্কলারশিপ না নিয়েই একাডেমি থেকে বের হন। স্যার অবশ্য একাডেমিতে ‘চিফ রেগুলেটিং ক্যাডেট’ ছিলেন এবং তাদের ব্যাচের ‘বেস্ট ক্যাডেট’ নির্বাচিত হয়ে পুরস্কার পান পাসিং আউটের সময়। উনি ইঞ্জিনিয়ারিং ডিপার্টমেন্টে চূড়ান্ত মেধাতালিকায় চতুর্থ হয়েছিলেন।

স্যার কে-লাইন পরীক্ষায় অংশ নেননি শুনে তাদের ব্যাচের প্রায় সবাই ধরে নিয়েছিল, জহির নিশ্চিত ‘জ্যাকপার্টি’। তা না হলে একাডেমির যে স্কলারশিপের জন্য ক্যাডেটরা স্বপ্ন দেখেন. সেটা তিনি কীভাবে নিজ হাতে দূরে ঠেলে দিলেন! তবে সত্যিকার অর্থে স্যার ছিলেন স্বপ্নবান মানুষ, কোনো কিছুর বিনিময়ে তিনি নিজের স্বপ্নকে হাতছাড়া করতে চাননি।

পাসিং আউটের ছয় মাস পর স্যার কোনো ট্যাংকারে সুযোগ না পেয়ে বাংলাদেশি কোম্পানি ট্রান্সওশান শিপম্যানেজমেন্টের একটা বাল্ক ক্যারিয়ারে ইঞ্জিন ক্যাডেট হিসেবে যোগ দেন।

তখন একাডেমিক স্কলারশিপ প্রত্যাখ্যান করার জন্য তার আফসোস হয়েছিল কিনা জানি না। যা হোক, মিশর এঙ্করেজে থাকার সময়ে তিনি একদিন একটি গ্যাস ট্যাংকার দেখতে পেয়ে সঙ্গে থাকা ফিটার সাহেবের কাছে জানতে চান ওটা কিসের জাহাজ।

ফিটার সাহেব জানান, ওটা একটি গ্যাস ট্যাংকার আর সেখানে সব ইউরোপীয়ানরা চাকরি করেন। বাংলাদেশি অফিসাররা এ ধরনের জাহাজে নেই বললেই চলে। এটা শুনে স্যারের স্বপ্ন আরও তীব্র হয় এবং তিনি গ্যাস ট্যাংকারে জয়েন করতে লক্ষ্য স্থির করেন।

জহির রায়হান স্যার ‘বেসিক গ্যাস ট্যাংকার’ কোর্স করার জন্য কাউকে না পেয়ে একা পাঁচ জনের খরচ বহন করেছিলেন। ইন্সটিটিউট এরপর জানায়, গ্যাসের কোর্স করানোর জন্য কোনো ইন্সট্রাক্টর নেই, স্যার কাউকে ম্যানেজ করতে পারলে তাহলেই সম্ভব।

সৌভাগ্যক্রমে স্যারের পরিচিত একজন গ্যাস ট্যাংকার এক্সপেরিয়েন্সড সিনিয়র মেরিনার ছিলেন এবং স্যার অনেক অনুরোধ করে উনাকে ক্লাস নিতে রাজি করিয়েছিলেন। এরপর সিওসিতে গ্যাস ট্যাংকার এন্ডোর্সমেন্ট নিতে গিয়ে দেখেন গ্যাস ট্যাংকার এন্ডোর্সমেন্টের সিলই নাই ডিজিতে। এর কারণ, গ্যাস ট্যাংকারে বাংলাদেশিরা সেভাবে সেইল করেন না।

এরপর স্যারের অনুরোধে সপ্তাহখানেক পর নতুন সিল বানিয়ে ডিজি শিপিং থেকে এন্ডোর্স করা হয়। মানে, গ্যাস ট্যাংকারে জয়েন করার জন্য প্রতিটি পদে পদে স্যারকে নিজ উদ্যোগে সব করতে হয়েছে। প্রবল ইচ্ছাশক্তির জন্যই তিনি এতসব বাধা অতিক্রম করতে পেরেছিলেন।

জহির রায়হান স্যার সিওসি পাওয়ার পর গুগলে শুধু এলপিজি/এলএনজি কোম্পানি খুঁজে খুঁজে ই-মেইল পাঠাতেন। তবে আশানুরূপ কোনো রিপ্লাই আসছিল না। এরপর আবার বাধ্য হয়ে তিনি একটি বাল্ক ক্যারিয়ারে যোগ দেন জুনিয়র ইঞ্জিনিয়ার হিসেবে, পরে অনবোর্ড ফোর্থ ইঞ্জিনিয়ার হিসেবে প্রমোশন পান।

জহির স্যারের কাজে মুগ্ধ হয়ে কোম্পানির সুপারিন্টেন্ডেন্ট তার পরিচিত অন্য একটি ট্যাংকার কোম্পানির সুপারিন্টেন্ডেন্টকে একটি সুযোগ দেয়ার অনুরোধ করেন। এরপর স্যার তার পরম কাঙ্ক্ষিত ট্যাংকারে জয়েন করার সুযোগ পান। সেখানে থাকার সময়েও উনি গ্যাস ট্যাংকারের টার্গেটে লেগে থাকেন এবং অনেক চড়াই উৎরাই পেরিয়ে একজন অত্যন্ত আন্তরিক সিনিয়রের প্রচেষ্টায় অবশেষে কাতার গ্যাস কোম্পানিতে ইন্টারভিউ দেয়ার সুযোগ পান।

এসএসসিতে বরিশাল বোর্ডে ষষ্ঠ স্থান অধিকার করা অত্যন্ত মেধাবী জহির স্যার ইন্টারভিউতে খুবই ভালো করেন এবং প্রথম বাংলাদেশি হিসেবে বিশ্বের সবচেয়ে বড় এলএনজি ফ্লিট কোম্পানি NAKILAT-এর জাহাজে যোগ দেন।

নাকিলাতে এর আগে কোনো বাংলাদেশি অফিসার ছিলেন না, তাই স্যার জয়েন করার এক মাস পরেই কোম্পানি থেকে তার পারফরম্যান্স জানতে চাওয়া হয় চিফ ইঞ্জিনিয়ারের কাছে। জহির স্যারের মতো রত্ন চিনতে চিফ ইঞ্জিনিয়ার ভুল করেননি। স্যারের পারফরম্যান্স এতটাই ভালো ছিল যে, ইন্ডিয়ান চিফ ইঞ্জিনিয়ার তাকে ‘এক্সেপশনালি ট্যালেন্টেড’ হিসেবে রিপোর্ট করেন।

জহির স্যার বাংলাদেশি অফিসারদের জন্য কাতার গ্যাসে একজন পাইওনিয়ার। তার একস্ট্রা অর্ডিনারি পারফরম্যান্সের জন্যই নাকিলাতে বাংলাদেশি মেরিনারদের জন্য দরজা উন্মুক্ত হয়।

কিছুদিন আগে আমার এক ক্লোজ ব্যাচমেট কথা প্রসঙ্গে বলেছিল, মেরিন লাইনে চেষ্টা করলে আর লেগে থাকলে সবই হয়। জহির স্যারের স্বপ্নপূরণের ঘটনাটি সেই কথারই উৎকৃষ্ট প্রমাণ।

এ লেখাটি মূলত জহির স্যারের প্রতি ধন্যবাদ এবং কৃতজ্ঞতা জানাতে লিখেছি। উনি যে লড়াই করেছেন সেজন্য এই ধন্যবাদ তার প্রাপ্য।

জহির স্যারের মতো আরও অসংখ্য বাংলাদেশি মেরিনার আছেন, যারা এমন বহু নামি-দামি কোম্পানির দরজা খুলেছেন আমাদের জুনিয়রদের জন্য, আপনাদের প্রতিও অশেষ কৃতজ্ঞতা।

আপনাদের মতো মেরিনারদের সুনামের জন্যই আমরা জুনিয়ররা এখনও অনেক জায়গায় সম্মানের সঙ্গে কাজ করতে পারছি।

এই লেখাটির আরেকটি উদ্দেশ্য হলো, জুনিয়রদের স্বপ্ন দেখতে সাহায্য করা। জহির স্যারের মতো তোমরাও নিজের স্বপ্ন আর ইচ্ছায় অবিচল থেকো। এর মানে এই নয়, সবাইকেই অয়েল/গ্যাস ট্যাংকারে জয়েন করতে হবে। কারও স্বপ্ন থাকতে পারে বিদেশি কোম্পানি, কারওবা ক্যারিয়ার, কারও কেমিক্যাল ট্যাংকার, কারও হয়তো কন্টেইনার।

যার যে স্বপ্নই আছে তা পুষে রাখো, পূরণ করতে অবিরাম চেষ্টা চালাতে থাকো, ইনশাআল্লাহ পজিটিভ কিছুই হবে। ক্যারিয়ারের শুরুতেই ভালো কোম্পানি বা একাডেমিক স্কলারশিপ না পাওয়া মানেই সব শেষ- এমনটি ভাবার কোনো কারণ নেই।

মেরিন একাডেমিতে থাকার সময়ে সিনিয়ররা জিজ্ঞেস করতেন, ‘জুনিয়র্স! হু উইল প্রভাইড ইওর জব?’ আমরা তখন গলা ফাটিয়ে জবাব দিতাম, ‘অনারেবল সিনিয়র স্যার!

তখন মনে মনে ‘বুলশিট’ ভেবে হাসলেও এখন বুঝতে পারছি প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে আসলেই আমাদের পাওয়া বেশিরভাগ জব অনারেবল সিনিয়র স্যারদেরই দেয়া।

আমাদের মতো জুনিয়রদের জন্য নতুন নতুন পথ তৈরি করা প্রতিটি বাংলাদেশি মেরিনারের প্রতি হাজার সালাম আর অনিঃশেষ কৃতজ্ঞতা।

লেখক: এক্স-ক্যাডেট, বাংলাদেশ মেরিন একাডেমি (৪৭তম ব্যাচ)

আরও পড়ুন:
সহযোগী অধ্যাপক পদে শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে যোগ দিন
জনবল নিচ্ছে ডাচ্‌-বাংলা ব্যাংক
বিকেএসপি দিচ্ছে ৩৮ নিয়োগ
বিবাহিতের শর্তে কলেজে চাকরি
ডাচ্‌-বাংলা ব্যাংকে যোগ দিন

শেয়ার করুন

ট্যুরিজম বোর্ডে ৬ চাকরি, আবেদন অনলাইনে

ট্যুরিজম বোর্ডে ৬ চাকরি, আবেদন অনলাইনে

ফরম পূরণের ৭২ ঘণ্টার মধ্যে ১ নং পদের জন্য ৪৪৮ টাকা এবং ২ ও ৩ নং পদের জন্য ১১২ টাকা টেলিটক প্রিপেইড মোবাইল সংযোগের মাধ্যমে জমা দিতে হবে।

বিভিন্ন পদে জনবল নিয়োগের জন্য বিজ্ঞপ্তি দিয়েছে বাংলাদেশ ট্যুরিজম বোর্ড (বিটিবি)। আগ্রহী প্রার্থীকে ২০ জানুয়ারি থেকে ১৮ ফেব্রুয়ারির মধ্যে অনলাইনে ফরম পূরণের মাধ্যমে আবেদন করতে হবে।

.

১. পদের নাম: প্রশাসনিক কর্মকর্তা

পদের সংখ্যা: ১টি

বেতন গ্রেড: ১০

বেতন স্কেল: ১৬,০০০-৩৮,৬৪০ টাকা

শিক্ষাগত যোগ্যতা: স্নাতক (সম্মান) / স্নাতকোত্তর

বয়স: সর্বোচ্চ ৩০ বছর

.

২. পদের নাম: সাঁটলিপিকার কাম কম্পিউটার অপারেটর

পদের সংখ্যা: ৩টি

বেতন গ্রেড: ১৩

বেতন স্কেল: ১১,০০০-২৬,৫৯০ টাকা

শিক্ষাগত যোগ্যতা: স্নাতক/সমমান

বয়স: সর্বোচ্চ ৩০ বছর

.

৩. পদের নাম: অফিস সহকারী কাম কম্পিউটার মুদ্রাক্ষরিক

পদের সংখ্যা: ২টি

বেতন গ্রেড: ১৬

বেতন স্কেল: ৯,৩০০-২২,৪৯০ টাকা

শিক্ষাগত যোগ্যতা: এইচএসসি/সমমান

বয়স: সর্বোচ্চ ৩০ বছর

.

২০২২ সালের ১৮ ফেব্রুয়ারি প্রার্থীর বয়স ১৮ থেকে ৩০ বছরের মধ্যে হতে হবে। তবে শারীরিক প্রতিবন্ধী, মুক্তিযোদ্ধা, শহীদ মুক্তিযোদ্ধার সন্তান-পোষ্যদের ক্ষেত্রে বয়স ৩২ বছর পর্যন্ত শিথিলযোগ্য।

বয়স প্রমাণের ক্ষেত্রে এফিডেভিট গ্রহণযোগ্য হবে না।

প্রার্থীকে অনলাইনে আবেদন ফরম পূরণ করতে হবে। ফরম পূরণ করতে এখানে ক্লিক করুন।

ফরম পূরণের ৭২ ঘণ্টার মধ্যে ১ নং পদের জন্য ৪৪৮ টাকা এবং ২ ও ৩ নং পদের জন্য ১১২ টাকা টেলিটক প্রিপেইড মোবাইল সংযোগের মাধ্যমে জমা দিতে হবে।

অনলাইনে আবেদন করতে সমস্যা হলে টেলিটক মোবাইল থেকে ১২১ নম্বরে অথবা [email protected] মেইলে যোগাযোগ করা যাবে। মেইলের সাবজেক্টে প্রতিষ্ঠানের নাম, পোস্ট, ইউজার আইডি এবং কন্টাক্ট নাম্বার উল্লেখ করতে হবে।

বিজ্ঞপ্তিটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন।

আরও পড়ুন:
সহযোগী অধ্যাপক পদে শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে যোগ দিন
জনবল নিচ্ছে ডাচ্‌-বাংলা ব্যাংক
বিকেএসপি দিচ্ছে ৩৮ নিয়োগ
বিবাহিতের শর্তে কলেজে চাকরি
ডাচ্‌-বাংলা ব্যাংকে যোগ দিন

শেয়ার করুন