সিইউবি কালচারাল ক্লাবের জমজমাট সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান

সিইউবি

কানাডিয়ান ইউনিভার্সিটি অফ বাংলাদেশ-এর কালচারাল ক্লাব আয়োজিত সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে অতিথিরা। ছবি: নিউজবাংলা

অনুষ্ঠানে বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষকসহ শতাধিক শিক্ষার্থী উপস্থিত ছিলেন। আয়োজনে বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষার্থীদের স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণে কবিতা আবৃত্তি, গান ও নৃত্য পরিবেশিত হয়।

কানাডিয়ান ইউনিভার্সিটি অফ বাংলাদেশ-এর কালচারাল ক্লাবের উদ্যোগে আয়োজিত হলো মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। বিশ্ববিদ্যালয়ের নিজস্ব মিলনায়তনে বুধবার বেলা ৩টায় শুরু হয় এ আয়োজন।

কালচারাল ক্লাবে সদ্য নির্বাচিত কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্যদের স্বাগত জানানো হয় অনুষ্ঠানে।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন কানাডিয়ান ইউনিভার্সিটি অফ বাংলাদেশ-এর বোর্ড অফ ট্রাস্টিজের সিনিয়র উপদেষ্টা ড. এইচ এম জহিরুল হক।

স্কুল অফ বিজনেসের বিভাগীয় প্রধান এ এস এম আরিফুজ্জামান, ইলেক্ট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেক্ট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং (ইইই) বিভাগের বিভাগীয় প্রধান ড. শাহরুখ আদনান খান এবং কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং (সিএসই) বিভাগের বিভাগীয় প্রধান শাহ রেজা এম ফাহাদ হোসাইন এবং বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষক ও কর্মকর্তারাও অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।

আয়োজনের তত্ত্বাবধানে ছিলেন স্টুডেন্ট অ্যাফেয়ার্স অফিসের পরিচালক ওয়ালিদ বিন কাদের এবং কালচারাল ক্লাবের উপদেষ্টা তাহসিন বিনতে আনিস।

করোনা মহামারির কঠিন সময়েও শিক্ষার্থীদের উৎসাহিত এবং প্রাণবন্ত রাখতে সাংস্কৃতিক ক্লাব একটি ‘ভার্চুয়াল ট্যালেন্ট হান্ট’-এর ব্যবস্থা করেছিল। এই ইভেন্টে বিজয়ীদের পুরস্কৃত করা হয় অনুষ্ঠানে। পরে আয়োজিত সাংস্কৃতিক পরিবেশনায় শিক্ষার্থীরা স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণ করেন।

অনুষ্ঠানে বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষকসহ শতাধিক শিক্ষার্থী উপস্থিত ছিলেন। আয়োজনে বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষার্থীদের স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণে কবিতা আবৃত্তি, গান ও নৃত্য পরিবেশিত হয়।

আরও পড়ুন:
সিইউবিতে ‘ইংলিশ জিনিয়াস’ অনলাইন প্রতিযোগিতার বিজয়ী ঘোষণা
সেরাদের পুরস্কার দিলো সিইউবির ফিল্ম অ্যান্ড টেলিভিশন বিভাগ

শেয়ার করুন

মন্তব্য

জাবিতে ভর্তি হতে ৪ লাখ টাকায় ‘চুক্তি’, সাক্ষাৎকারের সময় ধরা

জাবিতে ভর্তি হতে ৪ লাখ টাকায় ‘চুক্তি’, সাক্ষাৎকারের সময় ধরা

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান নিরাপত্তা কর্মকর্তা সুদীপ্ত শাহীন জানান, সুনির্দিষ্ট তথ্য পেয়ে কামালকে আটক করা হয়। বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অফিসে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তিনি ভর্তি পরীক্ষায় জালিয়াতি করার বিষয়টি স্বীকার করেছেন।

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে (জাবি) ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষে স্নাতক (সম্মান) প্রথম বর্ষের ভর্তি পরীক্ষার জালিয়াতি করে ভর্তি হতে আসা এক শিক্ষার্থীকে আটক করা হয়েছে।

বুধবার বেলা ১১টার দিকে গাণিতিক ও পদার্থবিষয়ক অনুষদে সাক্ষাৎকার দিতে আসা ওই শিক্ষার্থীকে আটক করে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।

আটক শিক্ষার্থীর নাম মোস্তফা কামাল উৎস। তার গ্রামের বাড়ি টাঙ্গাইল সদর উপজেলার উত্তর তারুটিয়া গ্রামে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান নিরাপত্তা কর্মকর্তা সুদীপ্ত শাহীন জানান, সুনির্দিষ্ট তথ্য পেয়ে কামালকে আটক করা হয়। বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অফিসে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তিনি ভর্তি পরীক্ষায় জালিয়াতি করার বিষয়টি স্বীকার করেছেন।

জিজ্ঞাসাবাদে কামাল জানিয়েছেন, তার দুই বন্ধু চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘ডি’ ইউনিটে জালিয়াতির মাধ্যমে ভর্তি হয়েছেন। তাদের মাধ্যমে তিনি রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থী মেহেদী এবং জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ১২ ব্যাচের শিক্ষার্থী শামীম নামে দুজনের খোঁজ পান।

তিনি আরও জানান, দুই বন্ধুর মাধ্যমে পরে মেহেদী ও শামীমের সঙ্গে তার পরিচয় হয়। তাদের সঙ্গে ৪ লাখ টাকার বিনিময়ে জাবিতে চান্স পাইয়ে দেয়ার চুক্তি হয় তার। পরে তার প্রবেশপত্র নিয়ে আরেকজন জাবির গাণিতিক ও পদার্থবিষয়ক অনুষদের ভর্তি পরীক্ষায় অংশ নেন। পরীক্ষায় তার মেধাক্রম আসে ৩০০। পরে চুক্তি অনুযায়ী পুরো টাকা শোধ করেন তিনি।

বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রক্টর আ স ম ফিরোজ-উল-হাসান বলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে আশুলিয়া থানায় মামলা করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। পরে পুলিশ প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেবে। এ ছাড়া জালিয়াতি চক্রের বাকি সদস্যদের আটক করার চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে।’

আরও পড়ুন:
সিইউবিতে ‘ইংলিশ জিনিয়াস’ অনলাইন প্রতিযোগিতার বিজয়ী ঘোষণা
সেরাদের পুরস্কার দিলো সিইউবির ফিল্ম অ্যান্ড টেলিভিশন বিভাগ

শেয়ার করুন

এইচএসসি: কেন্দ্রের ২০০ গজের মধ্যে প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা

এইচএসসি: কেন্দ্রের ২০০ গজের মধ্যে প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা

পরীক্ষা কেন্দ্রগুলোর ২০০ গজের মধ্যে পরীক্ষার্থী ছাড়া জনসাধারণের প্রবেশ সম্পূর্ণরূপে নিষিদ্ধ করা হয়েছে। ফাইল ছবি

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, বৃহস্পতিবার (২ ডিসেম্বর) থেকে এইচএসসি/ডিপ্লোমা ইন বিজনেস স্টাডিজ, এইচএসসি (ভোকেশনাল), এইচএসসি (বিএম), ডিপ্লোমা ইন কমার্স ও আলিম পরীক্ষা হতে যাচ্ছে। পরীক্ষা চলাকালীন কেন্দ্রগুলোয় সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণভাবে পরীক্ষা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে কিছু নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে ডিএমপি।

এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষা চলাকালে কেন্দ্রগুলোর ২০০ গজের মধ্যে পরীক্ষার্থী ছাড়া জনসাধারণের প্রবেশ নিষিদ্ধ করেছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি)।

ডিএমপি কমিশনার মোহা. শফিকুল ইসলাম স্বাক্ষরিত বিজ্ঞপ্তিতে এ নিষেধাজ্ঞা দেয়া হয়। বৃহস্পতিবার রাজধানীর সব পরীক্ষা কেন্দ্রে এই কড়াকড়ি আরোপ করা হবে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, বৃহস্পতিবার (২ ডিসেম্বর) থেকে এইচএসসি/ডিপ্লোমা ইন বিজনেস স্টাডিজ, এইচএসসি (ভোকেশনাল), এইচএসসি (বিএম), ডিপ্লোমা ইন কমার্স ও আলিম পরীক্ষা হতে যাচ্ছে।

পরীক্ষা চলাকালীন কেন্দ্রগুলোয় সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণভাবে পরীক্ষা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে কিছু নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি)।

নিষেধাজ্ঞায় পরীক্ষা কেন্দ্রগুলোর ২০০ গজের মধ্যে পরীক্ষার্থী ছাড়া জনসাধারণের প্রবেশ সম্পূর্ণরূপে নিষিদ্ধ করা হয়েছে।

এ আদেশ বৃহস্পতিবার থেকে পরীক্ষার দিনগুলোয় বহাল থাকবে।

আরও পড়ুন:
সিইউবিতে ‘ইংলিশ জিনিয়াস’ অনলাইন প্রতিযোগিতার বিজয়ী ঘোষণা
সেরাদের পুরস্কার দিলো সিইউবির ফিল্ম অ্যান্ড টেলিভিশন বিভাগ

শেয়ার করুন

করোনার নতুন ধাক্কা এলে বন্ধ হবে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান: প্রধানমন্ত্রী

করোনার নতুন ধাক্কা এলে বন্ধ হবে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান: প্রধানমন্ত্রী

করোনাভাইরাসের নতুন ঢেউ আসলে ফের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ করা হতে পারে বলে জানালেন প্রধানমন্ত্রী। ফাইল ছবি/নিউজবাংলা

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘মনে রাখতে হবে যে এই করোনাভাইরাস কিন্তু এখনই শেষ হয়ে যায়নি। আমরা ভ্যাকসিন দিচ্ছি, এখন শিক্ষার্থীদের দিচ্ছি। এখন আবার নতুন আরেকটি ওয়েব আসছে। কাজেই এটা মাথায় রেখে যেকোনো সময় এটা যদি বিস্তার লাভ করে তাহলে আবার কিন্তু স্কুলসহ সবকিছু বন্ধ হয়ে যাবে।’

দেশে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ আবারও বেড়ে গেলে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ফের বন্ধ করা লাগতে পারে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বিষয়টি মাথায় রেখে সময়কে সঠিক ব্যবহার এবং ক্লাসে মনোযোগী হতে শিক্ষার্থীদের পরামর্শ দিয়েছেন তিনি।

রাজধানীর শিশু একাডেমি প্রাঙ্গণে বুধবার সকালে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ম্যুরাল উদ্বোধন এবং ধানমন্ডিতে নারী উদ্যোক্তাদের জন্য জয়িতা টাওয়ারের ভিত্তি স্থাপন অনুষ্ঠানে ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে তিনি এসব কথা বলেন।

কোভিড-১৯-এর নতুন ধরন ওমিক্রন সারা বিশ্বে নতুন উদ্বেগের কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। আফ্রিকায় শুরু হওয়া কোভিড-১৯-এর সর্বশেষ এই ভ্যারিয়েন্টকে সবচেয়ে মারাত্মক হিসেবে উল্লেখ করেছেন বিজ্ঞানীরা। বাংলাদেশে ‘ওমিক্রন’ ঠেকাতে ইতিমধ্যে বেশ কয়েকটি পদক্ষেপ নিয়েছে সরকার।

এমন বাস্তবতায় শিক্ষার্থীদের রাস্তায় বাস ভাঙচুর না করে ক্লাসে মনোযোগী হওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, ‘মনে রাখতে হবে যে এই করোনাভাইরাস, কিন্তু এখনই শেষ হয়ে যায়নি। আমরা ভ্যাকসিন দিচ্ছি, এখন শিক্ষার্থীদের দিচ্ছি। এখন আবার নতুন আরেকটা ওয়েব আসছে। কাজেই এটা মাথায় রেখে যেকোনো সময় এটা যদি বিস্তার লাভ করে তাহলে আবার কিন্তু স্কুল-সব বন্ধ হয়ে যাবে।’

তাই সময়ের সদ্ব্যবহার করতে শিক্ষার্থীদের আহ্বান সরকারপ্রধানের। তিনি বলেন, ‘যেটুকু সময় পাওয়া যাচ্ছে সবাইকে অন্তত যার যার শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ফিরে গিয়ে শিক্ষা গ্রহণ করতে হবে।’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘ছাত্র-ছাত্রীদের জন্য আমি আরেকটা কথা বলব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান দীর্ঘদিন করোনার জন্য বন্ধ ছিল।… এখন সব স্কুল-কলেজ খুলে গেছে। সবাইকে এখন পড়াশোনা করতে হবে। যার যার স্কুলে ফিরে যেতে হবে।’

‘রাস্তায় গাড়ি ভাঙচুর করা ছাত্রদের কাজ না’

বিভিন্ন দাবিতে কয়েক দিন ধরে রাজধানীতে বিক্ষোভে নামা ছাত্রদের শিক্ষাঙ্গনে ফিরে যাওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বলেছেন, যানবাহন ভাঙচুর করা তাদের কাজ নয়।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘রাস্তায় নেমে গাড়ি ভাঙা এটা ছাত্রদের কাজ নয়, এটা কেউ করবেন না। দয়া করে যার যার শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ফিরে যান, লেখাপড়া করেন। আর যারা দোষী তাদের খুঁজে বের করে অবশ্যই শাস্তি দেয়া হবে, সেটা আমরা করব।’

সরকারপ্রধান বলেন, ‘ভবিষ্যতে এই গাড়ি ভাঙচুর এবং আগুন দেয়ার ঘটনা যারা ঘটাবে তাদের খুঁজে বের করা হবে, শাস্তি দেয়া হবে। কেননা যে গাড়িতে আগুন দেয়া হচ্ছে সে গাড়িতে যদি কেউ মারা যায় বা আগুনে পোড়ে তার জন্য কঠোর শাস্তি দেয়া হবে। এ কথাও মাথায় রাখতে হবে।

আরও পড়ুন:
সিইউবিতে ‘ইংলিশ জিনিয়াস’ অনলাইন প্রতিযোগিতার বিজয়ী ঘোষণা
সেরাদের পুরস্কার দিলো সিইউবির ফিল্ম অ্যান্ড টেলিভিশন বিভাগ

শেয়ার করুন

জেএসসি সনদের ফরম পূরণ ১১ ডিসেম্বর থেকে

জেএসসি সনদের ফরম পূরণ ১১ ডিসেম্বর থেকে

ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান অধ্যাপক নেহাল আহমেদ নিউজবাংলাকে বলেন, ‘এ বছরের জেএসসি পরীক্ষা কেন্দ্রীয়ভাবে অনুষ্ঠিত না হলেও অষ্টম শ্রেণির বার্ষিক পরীক্ষায় উর্ত্তীণ পরীক্ষার্থীরা যেন সনদ পান এ জন্য ফরম পূরণের নির্দেশ দেয়া হয়েছে।’

জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট বা জেএসসি সনদ দিতে অষ্টম শ্রেণির বার্ষিক পরীক্ষায় উত্তীর্ণ শিক্ষার্থীদের ফরম পূরণের নির্দেশ দিয়েছে ঢাকা শিক্ষা বোর্ড।

ফরম পূরণ শুরু হবে আগামী ১১ ডিসেম্বর থেকে, যা চলবে ২০ ডিসেম্বর পর্যন্ত। তবে ফরম পূরণে ব্যর্থ শিক্ষার্থী অষ্টম শ্রেণিতে অনুত্তীর্ণ হিসেবে বিবেচিত হবে, অর্থাৎ নবম শ্রেণিতে ভর্তি ও রেজিস্ট্রেশন করার সুযোগ পাবে না।

মঙ্গলবার রাতে ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক অধ্যাপক এস এম আমিরুল ইসলামের সই করা অফিস আদেশ থেকে এ তথ্য জানা যায়।

জানতে চাইলে ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান অধ্যাপক নেহাল আহমেদ নিউজবাংলাকে বলেন, ‘এ বছরের জেএসসি পরীক্ষা কেন্দ্রীয়ভাবে অনুষ্ঠিত না হলেও অষ্টম শ্রেণির বার্ষিক পরীক্ষায় উর্ত্তীণ পরীক্ষার্থীরা যেন সনদ পান এ জন্য ফরম পূরণের নির্দেশ দেয়া হয়েছে।’

অফিস আদেশে বলা হয়, চলতি বছরের জেএসসি পরীক্ষার শিক্ষার্থীদের স্ব স্ব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান কর্তৃক বার্ষিক পরীক্ষা ও অ্যাসাইনমেন্টের ভিত্তিতে মূল্যায়ন করে নবম শ্রেণিতে উত্তীর্ণ করতে হবে। ২০২১ সালের জেএসসি পরীক্ষার্থীদের প্রতিষ্ঠানে বার্ষিক পরীক্ষা ও অ্যাসাইনমেন্টের মূল্যায়ন করে প্রস্তুত ফলের ভিত্তিতে বোর্ড থেকে উত্তীর্ণ সনদ দিতে আগামী ১১ ডিসেম্বর থেকে ২০ ডিসেম্বরের মধ্যে অষ্টম শ্রেণির বার্ষিক পরীক্ষায় উত্তীর্ণ শিক্ষার্থীদের ফরম পূরণের জন্য নির্দেশ দেয়া হলো।

আরও বলা হয়, ফরম পূরণের জন্য সম্ভাব্য শিক্ষার্থীদের তালিকা আগামী ৭ ডিসেম্বর ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের ওয়েবসাইটে (https://dhakaeducationboard.gov.bd/) প্রকাশ করা হবে।

এরপর স্ব স্ব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানকে তার ইআইএন এবং পাসওয়ার্ড দিয়ে প্রবেশ করে আগামী ১১ ডিসেম্বর থেকে ২০ ডিসেম্বরের মধ্যে শিক্ষার্থীদের ইএফএফ (ইলেকট্রনিক ফরম পূরণ) করতে হবে। ইলেকট্রনিক ফরম পূরণ করতে কোনো ফি শিক্ষাবোর্ডকে দিতে হবে না।

করোনাভাইরাসের কারণে গত বছরও হয়নি জেএসসি ও জেডিসি। উভয় শ্রেণির শিক্ষার্থীদের দেয়া হয় অটোপাস।

করোনার কারণে গত বছর জেএসসি-জেডিসি পরীক্ষা হয়নি। নিজ নিজ মূল্যায়ন পদ্ধতিতে শিক্ষার্থীদের মূল্যায়ন করে নবম শ্রেণিতে উত্তীর্ণ করে স্কুল ও মাদ্রাসাগুলো।

করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের পর ২০২০ সালের ১৭ মার্চ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ করে দেয়া হয়। দেড় বছর পর গত ১২ সেপ্টেম্বর খুলে দেয়া হয় প্রাথমিক, মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক স্তরের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো।

এখন চলতি বছরের ও আগামী বছরের এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষার্থী এবং পঞ্চম শ্রেণির শিক্ষার্থীদের প্রতিদিন ক্লাস নেয়া হচ্ছে। আর অন্যান্য শ্রেণির মধ্যে অষ্টম, নবম, তৃতীয়, চতুর্থ শ্রেণিতে দুই দিন এবং অন্য শ্রেণির শিক্ষার্থীদের এক দিন ক্লাসে আসতে বলা হয়েছে।

আরও পড়ুন:
সিইউবিতে ‘ইংলিশ জিনিয়াস’ অনলাইন প্রতিযোগিতার বিজয়ী ঘোষণা
সেরাদের পুরস্কার দিলো সিইউবির ফিল্ম অ্যান্ড টেলিভিশন বিভাগ

শেয়ার করুন

৪৪তম বিসিএসের প্রিলি ২৭ মে

৪৪তম বিসিএসের প্রিলি ২৭ মে

৪৪তম বিসিএসের মাধ্যমে সরকার বিভিন্ন ক্যাডারে এক হাজার ৭১০ জনকে নিয়োগ দেবে। ফাইল ছবি

পিএসসির পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক (ক্যাডার) নূর আহমদের সই করা অফিস আদেশে বলা হয়, দেশের আটটি বিভাগীয় শহরে একযোগে ৪৪তম বিসিএসের প্রিলিমিনারি পরীক্ষা ২০২২ সালের ২৭ মে, শুক্রবার হতে পারে। পরীক্ষার হল, আসন ব্যবস্থা ও পরীক্ষা সংক্রান্ত বিস্তারিত নির্দেশাবলী গণমাধ্যমে বিজ্ঞপ্তির পাশাপাশি পিএসসির ওয়েবসাইটে প্রকাশ করা হবে।

৪৪তম বিসিএসের প্রিলিমিনারি পরীক্ষার তারিখ ঠিক করেছে বাংলাদেশ কর্ম কমিশন (পিএসসি)।

পিএসসির পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক (ক্যাডার) নূর আহমদের সই করা মঙ্গলবারের অফিস আদেশে ৪৪তম বিসিএসের প্রিলিমিনারির সম্ভাব্য তারিখ জানানো হয়।

এতে বলা হয়, দেশের আটটি বিভাগীয় শহরে একযোগে ৪৪তম বিসিএসের প্রিলিমিনারি পরীক্ষা ২০২২ সালের ২৭ মে, শুক্রবার হতে পারে। পরীক্ষার হল, আসন ব্যবস্থা ও পরীক্ষা সংক্রান্ত বিস্তারিত নির্দেশাবলী গণমাধ্যমে বিজ্ঞপ্তির পাশাপাশি পিএসসির ওয়েবসাইটে প্রকাশ করা হবে।

এই বিসিএসের মাধ্যমে সরকার বিভিন্ন ক্যাডারে এক হাজার ৭১০ জনকে নিয়োগ দেবে। আগ্রহীরা ৩০ ডিসেম্বর সকাল ১০টা থেকে ৩১ জানুয়ারি সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত অনলাইনে আবেদনপত্র জমা দিতে পারবেন।

প্রিলিমিনারির নম্বর বণ্টন

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, প্রার্থীকে ২০০ নম্বরের প্রিলিমিনারি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে হবে। পরীক্ষার সময় ২ ঘণ্টা। প্রিলিমিনারি পরীক্ষায় ২০০টি প্রশ্ন থাকবে। প্রার্থী প্রতিটি শুদ্ধ উত্তরের জন্য ১ নম্বর পাবেন। তবে ভুল উত্তর দিলে প্রতিটি ভুল উত্তরের জন্য প্রাপ্ত মোট নম্বর থেকে দশমিক ৫০ নম্বর কাটা যাবে। প্রিলিমিনারির বিষয়ভিত্তিক সিলেবাস পিএসসির ওয়েবসাইটে পাওয়া যাবে।

প্রিলিমিনারির বিষয় ও নম্বর বণ্টন

বাংলা ভাষা ও সাহিত্য ৩৫, ইংরেজি ভাষা ও সাহিত্য ৩৫, বাংলাদেশ বিষয়াবলি ৩০, আন্তর্জাতিক বিষয়াবলি ২০, ভূগোল (বাংলাদেশ ও বিশ্ব), পরিবেশ ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ১০, সাধারণ বিজ্ঞান ১৫, কম্পিউটার ও তথ্যপ্রযুক্তি ১৫, গাণিতিক যুক্তি ১৫, মানসিক দক্ষতা ১৫, নৈতিকতা, মূল্যবোধ ও সুশাসন ১০ নম্বরের ওপর পরীক্ষা হবে।

৪৪তম বিসিএসে সবচেয়ে বেশি নিয়োগ হবে শিক্ষা ক্যাডারে। এ ক্যাডারে ৭৭৬ জনকে নিয়োগ দেয়া হবে।

প্রশাসন ক্যাডারে ২৫০, পুলিশে ৫০, পররাষ্ট্রে ১০, আনসারে ১৪, অর্থ মন্ত্রণালয়ে সহকারী মহাহিসাবরক্ষক (নিরীক্ষা ও হিসাব) পদে ৩০, সহকারী কর কমিশনার পদে ১১, সহকারী নিবন্ধক (সমবায়) পদে ৮ ও সহকারী সুপারিনটেনডেন্ট/ট্রাফিক (রেলওয়ে) নিবন্ধক পদে ৭ জনকে নেয়া হবে।

তথ্য মন্ত্রণালয়ে সহকারী পরিচালক বা তথ্য কর্মকর্তা বা গবেষণা কর্মকর্তা পদে ১, সহকারী পরিচালক (অনুষ্ঠান) পদে ৭, সহকারী বার্তা নিয়ন্ত্রক পদে ২, সহকারী পোস্টমাস্টার পদে ২৩, সহকারী নিয়ন্ত্রক (বাণিজ্য) পদে ৬, পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা (পরিবার পরিকল্পনা) ২৭ জন এবং ৩ জন সহকারী খাদ্য নিয়ন্ত্রক নেয়া হবে।

প্রফেশনাল ক্যাডারে রেলপথ মন্ত্রণালয়ে সহকারী নির্বাহী প্রকৌশলী ১ জন, সহকারী যন্ত্র প্রকৌশলী ৮ জন, সহকারী সংকেত ও টেলিযোগাযোগ প্রকৌশলী ৬ জন, সহকারী সরঞ্জাম নিয়ন্ত্রক ১ জন, সহকারী বৈদ্যুতিক প্রকৌশলী ২ জন (তথ্য) ও ৫ জন সহকারী বন সংরক্ষক নেয়া হবে।

সহকারী প্রকৌশলী (সিভিল) পদে ২৯, সহকারী প্রকৌশলী (যান্ত্রিক) পদে ৭, বিসিএস মৎস্যে ১৫, পশুসম্পদে ২১০, কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা পদে ৪২ ও বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা পদে ২ জন নিয়োগ পাবেন।

এ ছাড়া সহকারী সার্জন ১০০ জন, সহকারী সার্জন (ডেন্টাল) ২৫ জন, সহকারী প্রকৌশলী (সিভিল) ২২ জন ও সহকারী প্রকৌশলী ৬ জনকে এ বিসিএসে নিয়োগ দেয়া হবে।

আরও পড়ুন:
সিইউবিতে ‘ইংলিশ জিনিয়াস’ অনলাইন প্রতিযোগিতার বিজয়ী ঘোষণা
সেরাদের পুরস্কার দিলো সিইউবির ফিল্ম অ্যান্ড টেলিভিশন বিভাগ

শেয়ার করুন

৪৪তম বিসিএসের বিজ্ঞপ্তি, নিয়োগ হবে ১৭১০ জন

৪৪তম বিসিএসের বিজ্ঞপ্তি, নিয়োগ হবে ১৭১০ জন

পিএসসি কার্যালয়। ফাইল ছবি

৪৪তম বিসিএসে সবচেয়ে বেশি নিয়োগ হবে শিক্ষা ক্যাডারে। এ ক্যাডারে ৭৭৬ জনকে নিয়োগ দেয়া হবে।

সরকারি চাকরিতে জনবল নিয়োগে ৪৪তম বিসিএসের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছে সরকারি কর্ম কমিশন (পিএসসি)।

এই বিসিএসের মাধ্যমে ১ হাজার ৭১০টি পদে নিয়োগ দেয়া হবে।

পিএসসির পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক (ক্যাডার) নূর আহম্মদের সই করা মঙ্গলবারের অফিস আদেশে এসব তথ্য জানানো হয়।

আগ্রহীরা ৩০ ডিসেম্বর থেকে ৩১ জানুয়ারি পর্যন্ত অনলাইনে আবেদনপত্র জমা দিতে পারবেন।

৪৪তম বিসিএসে সবচেয়ে বেশি নিয়োগ হবে শিক্ষা ক্যাডারে। এ ক্যাডারে ৭৭৬ জনকে নিয়োগ দেয়া হবে।

প্রশাসন ক্যাডারে ২৫০, পুলিশে ৫০, পররাষ্ট্রে ১০, আনসারে ১৪, অর্থ মন্ত্রণালয়ে সহকারী মহাহিসাবরক্ষক (নিরীক্ষা ও হিসাব) পদে ৩০, সহকারী কর কমিশনার পদে ১১, সহকারী নিবন্ধক (সমবায়) পদে ৮ ও সহকারী সুপারিনটেনডেন্ট/ট্রাফিক (রেলওয়ে) নিবন্ধক পদে ৭ জনকে নেয়া হবে।

তথ্য মন্ত্রণালয়ে সহকারী পরিচালক বা তথ্য কর্মকর্তা বা গবেষণা কর্মকর্তা পদে ১, সহকারী পরিচালক (অনুষ্ঠান) পদে ৭, সহকারী বার্তা নিয়ন্ত্রক পদে ২, সহকারী পোস্টমাস্টার পদে ২৩, সহকারী নিয়ন্ত্রক (বাণিজ্য) পদে ৬, পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা (পরিবার পরিকল্পনা) ২৭ জন এবং ৩ জন সহকারী খাদ্য নিয়ন্ত্রক নেয়া হবে।

প্রফেশনাল ক্যাডারে রেলপথ মন্ত্রণালয়ে সহকারী নির্বাহী প্রকৌশলী ১ জন, সহকারী যন্ত্র প্রকৌশলী ৮ জন, সহকারী সংকেত ও টেলিযোগাযোগ প্রকৌশলী ৬ জন, সহকারী সরঞ্জাম নিয়ন্ত্রক ১ জন, সহকারী বৈদ্যুতিক প্রকৌশলী ২ জন (তথ্য) ও ৫ জন সহকারী বন সংরক্ষক নেয়া হবে।

সহকারী প্রকৌশলী (সিভিল) পদে ২৯, সহকারী প্রকৌশলী (যান্ত্রিক) পদে ৭, বিসিএস মৎস্যে ১৫, পশুসম্পদে ২১০, কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা পদে ৪২ ও বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা পদে ২ জন নিয়োগ পাবেন।

এ ছাড়া সহকারী সার্জন ১০০ জন, সহকারী সার্জন (ডেন্টাল) ২৫ জন, সহকারী প্রকৌশলী (সিভিল) ২২ জন ও সহকারী প্রকৌশলী ৬ জনকে এ বিসিএসে নিয়োগ দেয়া হবে।

আরও পড়ুন:
সিইউবিতে ‘ইংলিশ জিনিয়াস’ অনলাইন প্রতিযোগিতার বিজয়ী ঘোষণা
সেরাদের পুরস্কার দিলো সিইউবির ফিল্ম অ্যান্ড টেলিভিশন বিভাগ

শেয়ার করুন

এ অধ্যক্ষ ছাড়া কি ভিকারুননিসা চলবে না: হাইকোর্ট

এ অধ্যক্ষ ছাড়া কি ভিকারুননিসা চলবে না: হাইকোর্ট

ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের অধ্যক্ষ কামরুন নাহার। ফাইল ছবি

ভিকারুননিসার অধ্যক্ষের বিষয়ে বিচারপতিদের একজন বলেন, ‘তিনি এমন কোনো লোক না যে তাকে ছাড়া ভিকারুননিসা চলবে না। এসব কথা কোর্টে এসে বলবেন না।’

ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের অধ্যক্ষ কামরুন নাহার ছাড়া প্রতিষ্ঠান চলবে কি না, সে প্রশ্ন তুলেছে হাইকোর্ট।

ভিকারুননিসার অধ্যক্ষের আইনজীবীর উদ্দেশে মঙ্গলবার এমন প্রশ্ন ছুড়ে দেয় বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি মো. মোস্তাফিজুর রহমানের হাইকোর্ট বেঞ্চ।

বিচারপতিদের একজন বলেন, ‘তিনি এমন কোনো লোক না যে তাকে ছাড়া ভিকারুননিসা চলবে না। এসব কথা কোর্টে এসে বলবেন না।’

পরে অধ্যক্ষ কামরুন নাহার ও অভিভাবক ফোরামের নেতা মীর সাহাবুদ্দিন টিপুর ফোনালাপ ফাঁসের ঘটনায় শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের তদন্ত কমিটির প্রতিবেদন আগামী ৩১ জানুয়ারির মধ্যে জমা দেয়ার নির্দেশ দেয় আদালত।

এটাই শেষ সময় উল্লেখ করে আদালত বলেছে, ‘এরপর আর কোনো সময় দেয়া হবে না।’

মামলার শুনানির সময় রিটকারী আইনজীবী আবদুল্লাহ আল হারুন ভূঁইয়া রাসেল আদালতে বলেন, ‘আদালতের আদেশের পরেও দীর্ঘ সময় নিয়ে তদন্ত রিপোর্ট দাখিল করা হচ্ছে না।’

তিনি বলেন, ‘উনি (কামরুন্নাহার) অধ্যক্ষ পদে থাকা অবস্থায় তদন্ত হলে তা ঠিকমতো হবে না। উনার বিপক্ষে কেউ রিপোর্ট দেবে না। তাই রিপোর্ট দাখিলের আগ পর্যন্ত কামরুন নাহারকে অধ্যক্ষ পদ থেকে বিরত রাখার আদেশ দেন। পাশাপাশি শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের গঠিত তদন্ত কমিটি যাতে দ্রুত রিপোর্ট দাখিল করে সে নির্দেশ দেন।’

অন্যদিকে রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী এ রিটের গ্রহণযোগ্যতা নিয়ে প্রশ্ন তোলেন।

ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল বিপুল বাগমার বলেন, ‘এই রিট গ্রহণযোগ্য নয়।’

একই দাবি করেন অধ্যক্ষের আইনজীবী মুশফিক উদ্দিন বখতিয়ারও।

তিনি বলেন, ‘মাই লর্ড, রিট তো চলে না প্রাইভেট প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে। এ ক্ষেত্রে একটা সিন্ডিকেটও আছে। কামরুন নাহার একজন বিসিএস ক্যাডার। তিনি একটি কলেজের অধ্যক্ষ পদে দায়িত্বে ছিলেন। তিনি এখানে থাকতে চান না। তাকে জোর করে ভিকারুননিসায় আনা হয়েছে।’

তখন আদালত বলে, ‘উনাকে ছাড়া কি ভিকারুননিসা চলবে না?’

পরে আদালত ৩১ জানুয়ারি এই রিটের পরবর্তী শুনানির দিন ঠিক করে দিয়ে প্রতিবেদন জমা দেয়ার নির্দেশ দেয়।

গত ৮ জুলাই ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের অধ্যক্ষ ও অভিভাবক ফোরামের নেতার ফোনালাপ ফাঁসের ঘটনায় অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা নিতে হাইকোর্টে রিট করেন দুই ছাত্রীর অভিভাবক মোহাম্মদ মোরশেদ আলম।

এ রিটের শুনানির সময় গত ৯ আগস্ট আদালত বলেছিল, ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের অধ্যক্ষ কামরুন নাহার ফোনালাপে যে ভাষা ব্যবহার করেছেন, তা সত্যি হয়ে থাকলে অবশ্যই নিন্দনীয়। এটা অপ্রত্যাশিত। তার মুখ থেকে এ ধরনের ভাষা আশা করা যায় না।

এরপর ৩১ অক্টোবরের মধ্যে রিপোর্ট জমা দিতে গত ১৬ সেপ্টেম্বর আদেশ দিয়েছিল হাইকোর্ট। তারপর দুই দফায় সময় দিলেও রিপোর্ট জমা হয়নি।

অধ্যক্ষ ও অভিভাবক ফোরাম নেতার সাড়ে ৪ মিনিটের ওই কথোপকথন ছড়িয়ে পড়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে।

আরও পড়ুন:
সিইউবিতে ‘ইংলিশ জিনিয়াস’ অনলাইন প্রতিযোগিতার বিজয়ী ঘোষণা
সেরাদের পুরস্কার দিলো সিইউবির ফিল্ম অ্যান্ড টেলিভিশন বিভাগ

শেয়ার করুন