হুয়াওয়ে ক্লাউডে প্রথম ভার্চুয়াল মানুষ

হুয়াওয়ে ক্লাউডে প্রথম ভার্চুয়াল মানুষ

ঘোষণা বলা হয়, চার বছরে হুয়াওয়ে ক্লাউডে ২৩ লাখ ডেভেলপার, ১৪ হাজার কনসাল্টিং পার্টনার, ৬ হাজার টেকনিক্যাল পার্টনার যুক্ত হয়েছেন। ক্লাউড থেকে সাড়ে চার হাজার মার্কেটপ্লেস সংশ্লিষ্ট পণ্য উন্মোচন করা হয়েছে।

হুয়াওয়ে ক্লাউডে প্রথম ভার্চুয়াল মানুষ ইয়ুনশেং যুক্ত হচ্ছে বলে জানিয়েছেন প্রতিষ্ঠানটির ক্লাউড ও হুয়াওয়ে কনজ্যুমার ক্লাউড সার্ভিসের প্রেসিডেন্ট ঝ্যাং পিংয়ান।

এ ছাড়া হুয়াওয়ে ক্লাউড স্ট্যাক ৮.১সহ নতুন ১০টি সেবা সম্প্রসারণের ঘোষণা এসেছে হুয়াওয়ে কানেক্ট ২০২১ সপ্তাহে।

সারা বিশ্বে হুয়াওয়ের কর্মপরিধিতে আরও দু’টি অঞ্চলের ব্যাপারেও ঘোষণা আসে এই অনুষ্ঠানে।

ঘোষণা বলা হয়, চার বছরে হুয়াওয়ে ক্লাউডে ২৩ লাখ ডেভেলপার, ১৪ হাজার কনসাল্টিং পার্টনার, ৬ হাজার টেকনিক্যাল পার্টনার যুক্ত হয়েছেন। ক্লাউড থেকে সাড়ে চার হাজার মার্কেটপ্লেস সংশ্লিষ্ট পণ্য উন্মোচন করা হয়েছে।

যা ডিজিটাল রূপান্তরে ইন্টারনেট প্রতিষ্ঠানসহ অন্য প্রতিষ্ঠানের জন্য হুয়াওয়ে ক্লাউড গুরুত্বপূর্ণ প্ল্যাটফর্মে পরিণত হয়ে ডিজিটালাইজেশনের পথে আরও এগিয়ে যাচ্ছে বলে জানানো হয়।

হুয়াওয়ে ক্লাউডের ডিজিটাল কনটেন্ট প্রোডাকশন লাইনের ওপর ভিত্তি করে হুয়াওয়ে ক্লাউডে যুক্ত হতে প্রথম ভার্চুয়াল মানুষ– ইয়ুনশেং তৈরি করেছে।

অন্যদিকে দ্রুতগতিতে ইমেজ রেন্ডারিংয়ের ক্ষেত্রে দশ হাজার কোর কম্পিউটিং পাওয়ার সক্ষমতার বিশ্বের সর্ববৃহৎ রেন্ডারিং বেজ হুয়াওয়ে ক্লাউডে যুক্ত হয়েছে নতুন দুই রিজিওন – উলানকাব ও মেক্সিকো।

২০২১ সালের সেপ্টেম্বরের মধ্যেই বিশ্বজুড়ে ১৭০টির বেশি দেশে ২৭টি ভৌগলিক অঞ্চলে ৬১টি অ্যাভাইলেবিলিটি জোনে (এজে) কার্যক্রম পরিচালনা করবে হুয়াওয়ে ক্লাউড ও এর পার্টনাররা।

অনুষ্ঠানে অপ্টভার্স, এআই সলভার, পাঙ্গু ড্রাগ মলিকিউল মডেল, ব্লকচেইন সার্ভিস ও ফাংশনগ্রাফ ফাংশন কম্পিউটিং সার্ভিসের মতো নতুন প্রযুক্তি উন্মোচন করা হয়।

ঝ্যাং বলেন, ‘৩০ বছরে, পৃথিবীকে সংযুক্ত করে হুয়াওয়ে নিরলস কাজ করে যাচ্ছে। আগামী ৩০ বছরে ইন্টেলিজেন্ট ভবিষ্যতের জন্য আমরা ক্লাউড ফাউন্ডেশন তৈরি করছি, যেখানে বিশ্বজুড়ে সবার সুযোগ বাড়াতে সেবা হিসেবে কাজ করবে অবকাঠামো, উদ্ভাবনে সেবা হিসেবে কাজ করবে প্রযুক্তি এবং এক সঙ্গে এগিয়ে যাওয়ার ক্ষেত্রে সেবা হিসেবে কাজ করবে দক্ষতা।’

তিনি আরও বলেন, ‘ডিজিটালাইজেশনে অনেক সুযোগের সম্ভাবনা রয়েছে এবং আমরা সবাইকে ক্লাউড নেটিভ হিসেবে কাজ করার ও ভাবার আহ্বান জানাই। সবকিছুকে সেবা হিসেবে পেতে ডিজিটাল ও এর সম্ভাবনা উন্মোচন করতে হবে।’

২৩ সেপ্টেম্বর থেকে ৩১ অক্টোবর অনলাইনে হুয়াওয়ে কানেক্ট আয়োজন করছে হুয়াওয়ে। ‘ডাইভ ইনটু ডিজিটাল’ প্রতিপাদ্যে এ বছর এ আয়োজন অনুষ্ঠিত হচ্ছে। হুয়াওয়ে কানেক্ট আয়োজনে ক্লাউড, এআই ও ফাইভজি সকল শিল্পখাতে ব্যবহারে এবং কীভাবে এ প্রযুক্তিগুলো প্রতিষ্ঠানের কার্যক্রমকে আরও কার্যকরী করে তোলার মাধ্যমে অর্থনৈতিক পুনরুদ্ধারে ভূমিকা রাখতে পারে তা নিয়ে আলোচনা করা হবে।

আরও পড়ুন:
তরুণদের নিয়ে আবার শুরু হুয়াওয়ের সিডস ফর দ্য ফিউচার
স্মার্ট ক্লাসরুম তৈরির সরঞ্জাম দিল হুয়াওয়ে
বৈশ্বিক চাপের মধ্যেও চমক হুয়াওয়ের
‘অনার’ ব্র্যান্ড বেচেই দিল হুয়াওয়ে
এশিয়া প্যাসিফিক অঞ্চলের ডিজিটাল রূপান্তরে কাজ করবে হুয়াওয়ে

শেয়ার করুন

মন্তব্য

দেশের বাজারে ‘হট ১১এস’ স্মার্টফোন আনল ইনফিনিক্স

দেশের বাজারে ‘হট ১১এস’ স্মার্টফোন আনল ইনফিনিক্স

দেশে নতুন ফোন এনেছে ইনফিনিক্স।

৪ জিবি র‌্যাম ভার্সনটির দাম ১৪ হাজার ৯৯০ টাকা ও ৬ জিবি র‌্যাম ভার্সনটির দাম ১৫ হাজার ৯৯০ টাকা।

স্মার্টফোন ব্র্যান্ড ইনফিনিক্স তাদের হট সিরিজের সবশেষ সংস্করণ ‘ইনফিনিক্স হট ১১এস’ দেশের বাজারে উন্মোচন করেছে। এর আগে ফোনটির প্রি-অর্ডার নিয়েছিল ইনফিনিক্স।

প্রতিষ্ঠানটি জানিয়েছে, সর্বাধুনিক প্রযুক্তির শক্তিশালী ডিভাইসটি এখন খুচরা দোকান ও ব্র্যান্ড স্টোরসহ দেশের যেকোনো প্রান্ত থেকে সহজেই কিনতে পারবেন গেমিংভক্তরা।

ইনফিনিক্স ‘হট ১১এস’ ফোনে রয়েছে মিডিয়াটেক হেলিও জি৮৮ ডুয়েল-চিপ গেমিং প্রসেসর, ৯০ হার্টজ রিফ্রেশ রেট সম্বলিত ৬ দশমিক ৭৮ ইঞ্চির এফএইচডি+ ডিসপ্লে।

৯০ হার্জ আলট্রা স্মুথ ডিসপ্লেতে ল্যাগ ছাড়াই গেম খেলতে দেবে বলে দাবি করেছে স্মার্টফোন ব্র্যান্ডটি।

‘হট ১১এস’ এ আরো রয়েছে ৫০ মেগাপিক্সেল ট্রিপল এআই নাইটস্কেপ ক্যামেরা। প্রাইমারি ক্যামেরায় রয়েছে এফ ১.৬ ওয়াইড-অ্যাপারচার।

ফোনটিকে আরও আছে ৫০০০ এমএএইচ ব্যাটারি। যা দিয়ে টানা ১৩ ঘণ্টা গেম খেলা যাবে। থাকবে ৬০ দিন পর্যন্ত স্ট্যান্ডবাই।

ব্যাটারির ‘পাওয়ার ম্যারাথন টেকনোলজি’র কারণে মাত্র ৫ শতাংশ চার্জেও মোবাইলটিতে কথা বলা যাবে অতিরিক্ত দুই ঘণ্টা।

ডিভাইসটিতে রয়েছে ৪ ও ৬ জিবি র‌্যামের দুটি ভার্সন। আর রয়েছে ১২৮ জিবি রম।

৪ জিবি র‌্যাম ভার্সনটির দাম ১৪ হাজার ৯৯০ টাকা ও ৬ জিবি র‌্যাম ভার্সনটির দাম ১৫ হাজার ৯৯০ টাকা।

আরও পড়ুন:
তরুণদের নিয়ে আবার শুরু হুয়াওয়ের সিডস ফর দ্য ফিউচার
স্মার্ট ক্লাসরুম তৈরির সরঞ্জাম দিল হুয়াওয়ে
বৈশ্বিক চাপের মধ্যেও চমক হুয়াওয়ের
‘অনার’ ব্র্যান্ড বেচেই দিল হুয়াওয়ে
এশিয়া প্যাসিফিক অঞ্চলের ডিজিটাল রূপান্তরে কাজ করবে হুয়াওয়ে

শেয়ার করুন

পরীক্ষামূলক ফাইভ-জি কি ডিসেম্বরে সম্ভব

পরীক্ষামূলক ফাইভ-জি কি ডিসেম্বরে সম্ভব

প্রতীকী ছবি

আগে থেকে অভিজ্ঞতা না থাকা নতুন একটি প্রযুক্তি চালু করার জন্য হাতে সময় রয়েছে মাত্র দুই মাস। এই সময়ে কীভাবে সম্ভব ফাইভ-জি পরীক্ষামূলকভাবে চালু করা?

আগামী বছরের মধ্যেই সরকার দেশে ফাইভ-জি সেবা চালু করতে চায়। তার আগে এই ডিসেম্বরেই উচ্চ গতির এ ইন্টারনেট সীমিত পরিসরে বা পরীক্ষামূলকভাবে শুরু করার কথা জোরেশোরে বলছেন সরকারের কর্তাব্যক্তিরা।

আগে থেকে অভিজ্ঞতা না থাকা নতুন একটি প্রযুক্তি চালু করার জন্য হাতে সময় রয়েছে মাত্র দুই মাস। এই সময়ে কীভাবে সম্ভব ফাইভ-জি পরীক্ষামূলকভাবে চালু করা?

গত ২৫ সেপ্টেম্বর ডাক ও টেলিযোগাযোগমন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার এক অনুষ্ঠানে বলেন, ‘ডিসেম্বরেই বাংলাদেশ ফাইভ-জি প্রযুক্তির যুগে প্রবেশ করবে। ডিজিটাল প্রযুক্তিতে বাংলাদেশ পৃথিবীর উন্নত দেশগুলো থেকে কোনোভাবেই পিছিয়ে থাকবে না। গত তিন বছরে ফাইভ-জি প্রযুক্তির নীতিমালা প্রণয়ন ও এর সঙ্গে সম্পৃক্ত অন্যান্য প্রযুক্তিসহ বিভিন্ন বিষয় নিয়ে বহুপাক্ষিক আলোচনা ও বিচার-বিশ্লেষণ করেই ফাইভ-জি যুগে আমরা প্রবেশের প্রস্তুতি ইতিমধ্যে সম্পন্ন করেছি।’

কীভাবে শুরু হবে ফাইভজির যাত্রা

রাষ্ট্রায়ত্ত মোবাইল অপারেটর টেলিটকের হাত ধরে পঞ্চম প্রজন্মের এই টেলিযোগাযোগসেবা পরীক্ষামূলকভাবে চালু করতে চায় সরকার। প্রথম পর্যায়ে ঢাকায় ২০০ স্থানে ফাইভ-জি ইন্টারনেট সুবিধা দেয়া হবে। এ জন্য আড়াইশ কোটি টাকার একটি প্রকল্পও অনুমোদনের চেষ্টায় রয়েছে টেলিটক।

এ প্রকল্পের প্রস্তাবনায় টেলিটক বলছে, গণভবন, বঙ্গভবন, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়, সচিবালয়, সরকারি গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনা, ঢাকার কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ থানা ও বেশকিছু বাণিজ্যিক ও আবাসিক গ্রাহক ফাইভ-জির আওতায় আসবে। এতে ১০০ এমবিপিএস গতির ইন্টারনেটের স্বাদ পাবে গ্রাহকরা।

প্রকল্পের কী অবস্থা

প্রকল্পটির পুরো নাম ‘ঢাকা মেট্রোপলিটন এলাকায় টেলিটকের নেটওয়ার্কে বাণিজ্যিকভাবে পরীক্ষামূলক ফাইভ-জি প্রযুক্তি চালুকরণ’। পরিকল্পনা কমিশন বলছে, এ প্রকল্পের প্রস্তাবনা নিয়ে গত ২৭ সেপ্টেম্বর মূল্যায়ন কমিটির বৈঠক হয়। এতে প্রকল্পটির বিভিন্ন বিষয়ে ব্যাখ্যা চাওয়া হয়।

এসব বিষয়সহ প্রস্তাবনাটি (ডিপিপি) পরিবর্তনের জন্য টেলিটকের কাছে পাঠানো হয়েছে। টেলিটক তা এখনও পরিকল্পনা কমিশনে ফেরত পাঠায়নি। টেলিটক প্রকল্প প্রস্তাবনা সংশোধন করে পাঠালে তা নিয়ে আবারও মূল্যায়ন কমিটির বৈঠক হবে। প্রস্তাবনায় সব কিছু সন্তোষজনক থাকলে তবেই তা অনুমোদনের জন্য জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) সভায় তোলা হবে।

তবে এসব প্রক্রিয়া শেষ হতে কয়েক মাস সময় লাগতে পারে। এই প্রকল্পে খরচ হবে ২৫৪ কোটি ৮ লাখ টাকা।

বিষয়টি নিয়ে কমিশনের দায়িত্বশীল এক কর্মকর্তা বলেন, ‘আমার ডিপিপি পুনর্গঠনের জন্য পাঠিয়েছি, কিন্তু তা এখনও আসেনি। পুনর্গঠিত প্রস্তাবনা এলে তার ওপর বৈঠক শেষে বেশ কয়েকটি ধাপ পার হয়ে তবে তা অনুমোদনের জন্য তোলা হবে। তবে প্রস্তাবনায় কোনো অসংগতি পেলে তা আবার সংশোধনের জন্য টেলিটকে ফেরত পাঠানো হতে পারে। এসব প্রক্রিয়া শেষ করে অনুমোদন পেতে দুই মাস বা এমনকি তিন মাসও লাগতে পারে।’

কমিশন বলছে, একনেকে অনুমোদন পেলেই প্রক্রিয়া শেষ হয়ে যায় না। প্রকল্প অনুমোদন পেলেও তাকে আরও কিছু ধাপ পার হতে হয়। দরপত্র আহ্বানের মাধ্যমে পণ্য কেনাকাটা করা হবে, যার মধ্যে থাকবে ফাইভ-জির বিভিন্ন যন্ত্রপাতি। তা ছাড়া এ প্রকল্পে অর্থ বরাদ্দও থাকতে হবে। তার জন্য বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচির সংশোধনী (সংশোধিত এডিপি) পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে। এডিপি সংশোধন হবে আগামী বছরের ফেব্রুয়ারি-মার্চে। যন্ত্রপাতি কেনার পর তা স্থাপন করতে হবে।

দেশে ফাইভ-জির কোনো সরঞ্জাম নেই বলে জানিয়েছে টেলিটক।

কীভাবে ডিসেম্বরেই ফাইভ-জি?

টেলিটক বলছে, সরকারের নির্বাচনি অঙ্গীকারের একটি ছিল ২০২১ সালের মধ্যে দেশে ফাইভ-জি চালু হবে। তাই সরকার চায় যেকোনো মূল্যে দু-একটি হলেও ফাইভ-জি স্টেশন চালু করতে। এ জন্য নির্দেশনা দেয়া রয়েছে, যাতে নির্বাচনি অঙ্গীকার কিছুটা হলেও রাখা যায়।

এ জন্য প্রকল্প অনুমোদনের আগেই টেলিটক নিজেদের অর্থে কিছু ফাইভ-জি যন্ত্রপাতি সংগ্রহ করে সীমিত আকারে এটি চালুর উদ্যোগ নিয়েছে, যদিও এসব এখনও চূড়ান্ত হয়নি। এখনও কোনো যন্ত্রপাতি কেনা হয়নি। তবে এ মাসেই তা চূড়ান্ত হওয়ার কথা রয়েছে।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে টেলিটকের জেনারেল ম্যানেজার (পরিকল্পনা ও বাস্তবায়ন) মো. আনোয়ার হোসেন নিউজবাংলাকে বলেন, ‘সরকারের ঘোষণা অনুযায়ী আমরা দেশে ভাইভ-জি চালু করতে একটি প্রকল্প হাতে নিচ্ছি। সেটি এখন অনুমোদন পর্যায়ে রয়েছে। এ প্রকল্পের মেয়াদ ২০২২ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত। তখন ঢাকায় ২০০ স্থানে ফাইভ-জি মোবাইল বিটিএস (বেইজ ট্রান্সসিভার স্টেশন) স্থাপন করা হবে।

‘ঢাকায় টেলিটকের ১ হাজারের বেশি সাইট রয়েছে, সেখান থেকে বাছাই করে ২০০ স্পটে বিটিএস বসবে। তখন বাণিজ্যিকভাবে সীমিত পরিসরে ফাইভ-জি সেবা চালু হবে। এরই মধ্যে প্রকল্প মূল্যায়ন কমিটির সভার নির্দেশনা শেষে ডিপিপি পুনর্গঠন করা হচ্ছে। এটি পাস হতে নভেম্বর ডিসেম্বর হয়ে যাবে। তবে তার আগেই এই ডিসেম্বরের মধ্যে পরীক্ষামূলকভাবে আমরা ঢাকায় ছয় থেকে ১০টি ফাইভ-জি বিটিএস অন এয়ারে দিতে পারব।’

কারা পাবে পরীক্ষামূলক ফাইভ-জির সুবিধা

আনোয়ার হোসেন বলেন, শেরে বাংলানগর, সচিবালয়, বিটিসিএল ও টেলিফোন ভবন, রমনা, উত্তরা, গুলশান এসব এলাকায় এ সাইট নির্বাচন করা হতে পারে। এটা শুধুই পরীক্ষামূলক, জাস্ট ফাইভ-জি লঞ্চ করল– এই একটা বার্তা দেয়া হবে, ফাইভ-জির স্পিডটা দেখা হবে। এটা বাণিজ্যিকভাবে যাবে না।

‘এখনই এ ফাইভ-জির সুবিধা কেউ পাবে না। শুধু আমরা যারা এর সঙ্গে কাজ করব, তারাই এটা পাব। কিছু সিম দিয়ে এটার বিভিন্ন দিক যাচাই করে দেখা হবে। আমাদেরও সবাই এটা পাবে না। এখানে দেখা হবে ফাইভ-জি পুরো চালু করতে কী কী চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হতে হয়। এখানে আমরা দেখব, একই স্থানে ফোর-জি কেমন স্পিড পাচ্ছে, ফাইভ-জি কেমন স্পিড পাচ্ছে, আমাদের সামনে কী কী কাজ করতে হবে ইত্যাদি। তবে এখান থেকে বিভিন্ন তথ্য নিয়ে যাচাই-বাছাই করে আগামী বছর ফাইভ-জির কার্যক্রম শুরু হবে। আর কমার্শিয়ালি যাবে ২০২২ সালের ডিসেম্বরে।’

তিনি জানান, ছোট আকারে এটি চালু করতে খুব বেশি যন্ত্রপাতি বা প্রস্তুতি লাগবে না। তবে যেসব সাইট রয়েছে, সেখানে ফাইভ-জি বিটিএস বসাতে গেলে ব্যাটারির সক্ষমতা বাড়াতে হবে। এন্টেনাগুলো বেশ ভারী। এ জন্য টাওয়ারগুলো আরও মজবুত করতে হবে। এ ছাড়া আর কোনো পরিবর্তন প্রয়োজন হবে না।

যন্ত্রপাতি সংগ্রহ সম্পর্কে তিনি বলেন, ‘ডিসেম্বরের মধ্যে যে কয়েকটি সাইটে ফাইভ-জি বিটিএস বসানো হবে, তা হবে দেশের প্রথম ফাইভ-জি উপযোগাী যন্ত্রপাতি। তবে সেগুলো প্রকল্পের আওতায় নয়। টেলিটকের নিজস্ব টাকায় সেগুলো কেনা হবে। সেগুলো এখনও আনা হয়নি। হুয়াওয়ে টেকনোলজি থেকে আমরা এ ফাইভ-জি বিটিএসগুলো কিনব। এ বিষয়ে চুক্তিও হয়ে গেছে। তাড়াতাড়িই সেগুলো টেলিটকের হাতে আসবে।

আরও পড়ুন:
তরুণদের নিয়ে আবার শুরু হুয়াওয়ের সিডস ফর দ্য ফিউচার
স্মার্ট ক্লাসরুম তৈরির সরঞ্জাম দিল হুয়াওয়ে
বৈশ্বিক চাপের মধ্যেও চমক হুয়াওয়ের
‘অনার’ ব্র্যান্ড বেচেই দিল হুয়াওয়ে
এশিয়া প্যাসিফিক অঞ্চলের ডিজিটাল রূপান্তরে কাজ করবে হুয়াওয়ে

শেয়ার করুন

দেশে টিকটকের সেফটি অ্যাম্বাসেডর তাহসান ও পূর্ণিমা

দেশে টিকটকের সেফটি অ্যাম্বাসেডর তাহসান ও পূর্ণিমা

টিকটকের সেফটি অ্যাম্বাসেডর হয়েছেন তাহসান ও পূর্ণিমা।

সেফটি প্রোগ্রামে তাহসান খান ও পূর্ণিমা ইন-অ্যাপ ক্যাম্পেইনের জন্য টিকটকের সঙ্গে যোগ দিয়েছেন। তারা দ্বি-মাসিক ভিত্তিতে প্ল্যাটফর্মটিতে অ্যাম্বাসেডররা ভিডিও ক্যাম্পেইন পরিচালনা করবেন।

বাংলাদেশে টিকটকের সেফটি অ্যাম্বাসেডর হয়েছেন সঙ্গীতশিল্প ও অভিনেতা তাহসান এবং অভিনেত্রী দিলারা হানিফ পূর্ণিমা।

টিকটক জানায়, নিরাপদ, সুরক্ষিত ও বহুমুখী কমিউনিটি তৈরির লক্ষ্যে প্লাটফর্মটি দেশে এই সেফটি অ্যাম্বাসেডর প্রোগ্রাম। এই প্রোগ্রামের মাধ্যমে টিকটক বেশ কিছু সেফটি এবং প্রাইভেসি কন্ট্রোল এর সুবিধা নিয়ে সচেতনতা সৃষ্টি করছে যাতে ব্যবহারকারী আরও বেশি ব্যক্তিগত তথ্যে নিয়ন্ত্রণ রাখতে পারে এবং কিশোর-কিশোরীদের সুরক্ষিত রাখতে সহায়তা করে।

সেফটি প্রোগ্রামের মধ্যে রয়েছে, যাদের বয়স ১৬ বছরের নিচে তাদের অ্যাকাউন্টগুলো স্বয়ংক্রিভাবে প্রাইভেট করা থাকবে, ১৬ বা তার বেশি বয়সীদের কাছে সরাসরি বার্তা পাঠানোকে সীমিত রাখা এবং ফ্যামিলি পেয়ারিংয়ের মাধ্যমে বাবা-মা তাদের ছেলে-মেয়েদের টিকটকে নজরদারি রাখার ব্যবস্থা।

সেফটি প্রোগ্রামে তাহসান খান ও পূর্ণিমা ইন-অ্যাপ ক্যাম্পেইনের জন্য টিকটকের সঙ্গে যোগ দিয়েছেন। তারা দ্বি-মাসিক ভিত্তিতে প্ল্যাটফর্মটিতে অ্যাম্বাসেডররা ভিডিও ক্যাম্পেইন পরিচালনা করবেন।

ভিডিও ক্যাম্পেইনে বড় পরিসরে সব বিষয় থাকবে, যার মধ্যে শিক্ষামূলক বিষয়, ডিজিটাল ওয়েলবিং বা ডিজিটাল সুস্থতা, বিশ্বাস এবং সেফটি।

এ ছাড়া কিছু প্রধান ফিচার ফ্যামিলি পেয়ারিং মোড থাকবে, যেটি ব্যক্তিগত প্রয়োজনে পিতামাতা ও কিশোর-কিশোরীদের নিজেদের মতো করে সেফটি সেটিংস করতে দেবে বলে জানানো হয়।

এই ক্যাম্পেইনের প্রথম প্রোগ্রাম হিসেবে তাহসান ও পূর্ণিমা উন্মোচন করেছেন ফ্যামিলি পেয়ারিং মোড। প্রোগ্রামটি লাইভ করা হয় #tiktokfamily নামে। এই ফিচারের মূল লক্ষ্য, সন্তানদের টিকটক কার্যক্রম এর ওপর পিতা-মাতাদের আরও পর্যবেক্ষণ সুযোগ। এর মাধ্যমে তারা টিকটকে ছেলে-মেয়েদের কর্মকাণ্ড সম্পর্কে ওয়াকিবহাল থাকবেন এবং তাদের সঙ্গে বাবা-মায়েরা আরও বেশি স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করতে পারেন।

ফ্যামিলি পেয়ারিং ফিচারের মাধ্যমে বাবা-মা সন্তানদের টিকটক অ্যাকাউন্টে প্রবেশাধিকার পাবে নিজেদের অ্যাকাউন্ট সংযোগের মাধ্যমে। এর মধ্যে দিয়ে তারা জানতে পারবেন সন্তানরা কার সঙ্গে কথা বলছে, তারা কোন ধরনের কনটেন্ট দেখছে এবং অ্যাপে কতটা সময় ব্যয় করছে।

সন্তানরা কার সঙ্গে কথা বলতে পারে সেটা নজরদারির পাশাপাশি বাবা-মায়েরা নির্দিষ্ট করে দিতে পারবেন কারা সওই সংযুক্ত অ্যাকাউন্টে সরাসরি ম্যাসেজ পাঠাতে পারবেন; কিংবা পুরোদমে বন্ধ রাখতে পারবেন ডিরেক্ট ম্যাসেজ অপশনও।

তাহসান খান বলেন, ‘ডিজিটাল প্ল্যাটফর্মে আচরণে কেমন হওয়া উচিত– এ নিয়ে টিকটক যে পরিবারের মধ্যে কথোপকথনের সুযোগ করে দিচ্ছে, তা দেখে আমি সত্যিই অভিভূত। অনলাইন নিরাপত্তা এবং ডিজিটাল সুস্বাস্থ্য রক্ষায় আমাদের সবারই অগ্রনী ভূমিকা রাখতে হবে। সেজন্য প্রত্যেকের জায়গা থেকে আমাদের সচেতন হতে হবে।’

পূর্ণিমা বলেন, ‘আজকের বিশ্বকে ইন্টারনেট ও স্মার্টফোন ছাড়া কল্পনা করা যায় না। তেমনটাই আমাদের প্রযুক্তিকেন্দ্রীক শিশু-কিশোরদেরও এসব ছাড়া চলে না। কিন্তু তারা যতই ডিজিটালভাবে শিক্ষিত হোক না কেনো, প্রাপ্তবয়স্ক এবং বাবা-মা হিসেবে তাদের সুস্থতার দেখাশোনা করা আমাদের দায়িত্ব। তরুণদের জন্য একটি নিরাপদ ও সুন্দর প্ল্যাটফর্ম গড়ে তোলার জন্য এমন ক্যাম্পেইনে যুক্ত হতে পেরে আমি আনন্দিত।’

এক বিজ্ঞপ্তিতে টিকটক জানায়, সৃজনশীল কর্মকাণ্ড ও বিনোদনের প্ল্যাটফর্ম হিসেবে ব্যবহারকারীদের সেফটি ও প্রাইভেসি দিতে তারা প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। অনলাইনে ছেলে-মেয়েরা কী করছে সেটা জানতে এবং ফ্যামিলি পেয়ারিং ফিচারের একটা অংশ হিসেবে মা-বাবাদের আরও বেশি নিয়ন্ত্রণ দিতেই টিকটকের এই প্রচেষ্টা।

এ ছাড়া টিকটকের অনেকগুলো ব্যবস্থা রয়েছে যেমন, বর্ধিত প্রাইভেসি সেটিংস, ফিল্টার, ইন-অ্যাপ রিপোর্টিং, শক্তিশালী কমিউনিটি গাইডলাইন এবং লোকাল ল্যাঙ্গুয়েজ মডারেশন ইত্যাদি।

সম্প্রতি টিকটক বাংলাদেশে তাদের সেফটি সেন্টার চালু করেছে। এটি একটি ওয়ান স্টপ ডেসটিনেশন যা সেফটি পলিসি এবং রিসোর্স এনেছে বাংলা ও ইংরেজি উভয় ভাষায়।

আরও পড়ুন:
তরুণদের নিয়ে আবার শুরু হুয়াওয়ের সিডস ফর দ্য ফিউচার
স্মার্ট ক্লাসরুম তৈরির সরঞ্জাম দিল হুয়াওয়ে
বৈশ্বিক চাপের মধ্যেও চমক হুয়াওয়ের
‘অনার’ ব্র্যান্ড বেচেই দিল হুয়াওয়ে
এশিয়া প্যাসিফিক অঞ্চলের ডিজিটাল রূপান্তরে কাজ করবে হুয়াওয়ে

শেয়ার করুন

জেনেশুনে ঘৃণাকে প্রশ্রয় দিচ্ছে ফেসবুক

জেনেশুনে ঘৃণাকে প্রশ্রয় দিচ্ছে ফেসবুক

ঘৃণা ছড়ানো নিয়ন্ত্রণ না করার অভিযোগ রয়েছে ফেসবুকের বিরুদ্ধে। ছবি: সংগৃহীত

নতুন করে শুক্রবার ফেসবুকের এমন সব কর্মকাণ্ড ফাঁস করেছেন মাধ্যমটির সাবেক এক কর্তা। ফেসবুক কীভাবে ঘৃণামূলক বক্তব্য ছড়াচ্ছে এবং অবৈধ কাজ করছে সেসব বিষয়ে কথা বলেছেন তিনি।

কিছুদিন আগেই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকের সাবেক এক কর্মকর্তা দাবি করেন, মাধ্যমটির মূল লক্ষ্য মুনাফা করা। সে জন্য মাধ্যমটি ব্যবহারকারীদের নিরাপত্তাকেও খুব বেশি আমলে নেয় না।

নতুন করে শুক্রবার ফেসবুকের এমন সব কর্মকাণ্ড ফাঁস করেছেন মাধ্যমটির সাবেক এক কর্মকর্তা। ফেসবুক কীভাবে ঘৃণামূলক বক্তব্য ছড়াচ্ছে এবং অবৈধ কাজ করছে সেসব বিষয়ে কথা বলেছেন তিনি।

নির্বাচনের সময় ভুয়া তথ্য ছড়ানো ঠেকাতে ব্যর্থ হয়েছে ফেসবুক। এমনকি নতুন কিছু নথি ফাঁসের পর ফেসবুক বেশ চাপে পড়েছে বলেও জানান তিনি।

নতুন করে ফেসবুকের বিরুদ্ধে অভিযোগ তোলা ওই ব্যক্তি কথা বলেছেন সংবাদমাধ্যম ওয়াশিংটন পোস্টের সঙ্গে।

তিনি জানান, ফেসবুকের বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্রের সিকিউরিটিস অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন এবং যুক্তরাষ্ট্রের একটি সংস্থা যারা পাবলিক ট্রেড কোম্পানিতে বিনিয়োগ নিয়ন্ত্রণ করে তাদের কাছেও অভিযোগ করা হয়েছে।

সাবেক ওই কর্মকর্তা সেখানে বলেছেন, ফেসবুক কীভাবে সাবেক প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্প ও তার মতো রাগান্বিত ব্যক্তি ও কোম্পানিকে খুশি রাখতে নিরাপত্তা বিধি প্রয়োগে অস্বীকার করেছে।

সম্প্রতি বাংলাদেশে ঘটে যাওয়া ধর্মীয় সংখ্যালঘুদের উপর হামলাকে কেন্দ্র করে বাংলাদেশ ও ভারতেও বিভিন্ন ধরনের ঘৃণা ছড়ানোর অভিযোগ উঠেছে মাধ্যমটির বিরুদ্ধে। সেসব নিয়ন্ত্রণেও ভূমিকার কথা জানা যায়নি মাধ্যমটির পক্ষ থেকে।

অবশ্য ফেসবুকের যোগাযোগ কর্মকর্তা ট্র্যাকার বাউন্ড ২০১৬ সালের নির্বাচনে প্ল্যাটফর্মটির ভূমিকা নিয়ে যে উদ্বেগ তা উড়িয়ে দিয়েছেন।

বাউন্ড বলেন, ‘সেটি তো শেষ হয়ে গেছে।’

ওয়াশিংটন পোস্টের প্রতিবেদনে বলা হয়, ‘এসব অভিযোগের কিছু ধরার মধ্যেই ছিল না। তারা কয়েক সপ্তাহের মধ্যেই বিষয়টি ভুলে অন্যদিকে চলে যায়। আমরা টাকা আয় করছি এবং আমরা ভালো আছি।’

ফেসবুকের সাবেক প্রোডাক্ট ম্যানেজার ফ্রান্সেস হাউজেন বলেন, ফেসবুক জননিরাপত্তার বিষয়ে মাথা না ঘামিয়ে ক্রমাগত মুনাফার দিকে ঝুঁকছে।

গার্ডিয়ানের প্রতিবেদনে বলা হয়, হাউজেন সম্প্রতি যুক্তরাষ্ট্রের কংগ্রেসে ফেসবুকের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিয়েছেন। সামনেই যুক্তরাজ্যের পার্লামেন্টে সাক্ষ্য দেবেন তিনি। এ বিষয়কে ঘিরে তৈরি হয়েছে সংকট। তাই ব্র্যান্ডটি নিজেদের নাম পরিবর্তন করার মতো বিষয় নিয়ে ভাবতে শুরু করেছে ফেসবুক।

একই দিনে নিউইয়র্ক টাইমস, ওয়াশিংটন পোস্ট এবং এনবিসি একটি গোপন নথি ফাঁসের প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। সেখানে দেখানো হয়েছে, ২০২০ সালের নির্বাচনেও মাধ্যমটি কীভাবে ভুয়া তথ্য ছড়িয়েছে।

নির্বাচনে হেরে গিয়ে ডনাল্ড ট্রাম্প দাবি করেন, ফেসবুক জো বাইডেনের হয়ে কাজ করেছে।

অবশ্য একটি তথ্য বিশ্লেষণ করে নিউইয়র্ক টাইমস দেখিয়েছে, বাইডেনের পক্ষে প্রচারে ফেসবুকে যেসব তথ্য ছড়ানো হয়েছে তার অন্তত ১০ শতাংশ ছিল ভুয়া।

এটা শুধু মুনাফা লাভের আশাতেই করেছে বলে দাবি করেছেন ফেসবুকের সাবেক কর্মকর্তা ও তথ্য ফাঁসকারী।

মানবাধিকার সংস্থা ফ্রি প্রেস অ্যাকশনের কো-সিইও জেসিকা জে গোলন্দাজ বলেন, ‘এখন কংগ্রেসের উচিত হবে ফেসবুকের ব্যবসার মডেলটি খতিয়ে দেয়া। কেননা তাদের বিরুদ্ধে খুব বেশি পরিমাণে ঘৃণা ও ভুয়া তথ্য ছড়ানোর অভিযোগ রয়েছে।’

আরও পড়ুন:
তরুণদের নিয়ে আবার শুরু হুয়াওয়ের সিডস ফর দ্য ফিউচার
স্মার্ট ক্লাসরুম তৈরির সরঞ্জাম দিল হুয়াওয়ে
বৈশ্বিক চাপের মধ্যেও চমক হুয়াওয়ের
‘অনার’ ব্র্যান্ড বেচেই দিল হুয়াওয়ে
এশিয়া প্যাসিফিক অঞ্চলের ডিজিটাল রূপান্তরে কাজ করবে হুয়াওয়ে

শেয়ার করুন

ডিজিটাল নিরাপত্তা নিশ্চিতে সরকার বদ্ধপরিকর

ডিজিটাল নিরাপত্তা নিশ্চিতে সরকার বদ্ধপরিকর

প্রতীকী ছবি

ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী বলেন, ‘সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ব্যবহার করে সাম্প্রদায়িক দাঙ্গাসহ সামাজিক-রাজনৈতিক অস্থিরতা সৃষ্টি হচ্ছে। এটা নিয়ন্ত্রণ করা এখন বড় চ্যালেঞ্জ। সে চ্যালেঞ্জ অতিক্রম করতে আমরা কাজ করছি। আমরা সফল হব।’

ডিজিটাল নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে সরকার বদ্ধপরিকর বলে জানিয়েছেন ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার।

স্থানীয় সময় শুক্রবার সন্ধ্যায় যুক্তরাষ্ট্রপ্রবাসী বাংলাদেশি ডিজিটাল প্রযুক্তি উদ্যোক্তাদের আয়োজিত ডিজিটাল সিকিউরিটি সম্মেলনে ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে তিনি এ কথা জানান।

মন্ত্রী বলেন, ‘সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ব্যবহার করে সাম্প্রদায়িক দাঙ্গাসহ সামাজিক-রাজনৈতিক অস্থিরতা সৃষ্টি হচ্ছে। এটা নিয়ন্ত্রণ করা এখন বড় চ্যালেঞ্জ। সে চ্যালেঞ্জ অতিক্রম করতে আমরা কাজ করছি। আমরা সফল হব।’

যুক্তরাষ্ট্রপ্রবাসী উদ্যোক্তা মোস্তাফিজুর রহমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ স্যাটেলাইট কোম্পানি লিমিটেডের চেয়ারম্যান ড. শাহজাহান মাহমুদ এবং বিটিআরসির মহাপরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো. নাসিম পারভেজ বক্তৃতা করেন।

অনুষ্ঠানে ডিজিটাল নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে প্রযুক্তিগত সক্ষমতা অর্জন এবং ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন প্রণয়নসহ সরকারের পদক্ষেপ তুলে ধরেন ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী।

তিনি বলেন, ‘ডিজিটাল নিরাপত্তা চ্যালেঞ্জিং হলেও আমরা এই চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় পিছিয়ে নেই। অতীতের তিনটি শিল্প বিপ্লব মিস করায় সৃষ্ট পশ্চাদপদতা অতিক্রম করে বাংলাদেশ ডিজিটাল প্রযুক্তি বিকাশে বৈশ্বিক নেতৃত্বের জায়গায় উপনীত হয়েছে। এই অর্জন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ডিজিটাল বাংলাদেশ কর্মসূচির সফল বাস্তবায়নের ফসল।’

তিনি বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু বেতবুনিয়ায় উপগ্রহ ভূ-কেন্দ্র প্রতিষ্ঠা এবং আইটিইউ ও ইউপিইউর সদস্যপদ অর্জনের মাধ্যমে দেশে ডিজিটাইজেশনের যাত্রা শুরু করেন। ১৯৯৬ সালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কম্পিউটারের ওপর থেকে ভ্যাট-ট্যাক্স প্রত্যাহার করে তা সাধারণ মানুষের নাগালে পৌঁছে দেন।

‘মোবাইল ফোন সহজলভ্য করতে এবং ভি-স্যাটের মাধ্যমে ইন্টারনেট চালুসহ বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণ ও বাস্তবায়নের ধারাবাহিকতায় ডিজিটাইজেশনে বঙ্গবন্ধুর বপন করা বীজটিকে চারা গাছে রূপান্তর করেন। আমরা সৌদি আরবে আইওটি ডিভাইস রপ্তানি করছি। বিশ্বের ৮০টি দেশে বাংলাদেশ থেকে সফটওয়্যার রপ্তানি হচ্ছে।’

আরও পড়ুন:
তরুণদের নিয়ে আবার শুরু হুয়াওয়ের সিডস ফর দ্য ফিউচার
স্মার্ট ক্লাসরুম তৈরির সরঞ্জাম দিল হুয়াওয়ে
বৈশ্বিক চাপের মধ্যেও চমক হুয়াওয়ের
‘অনার’ ব্র্যান্ড বেচেই দিল হুয়াওয়ে
এশিয়া প্যাসিফিক অঞ্চলের ডিজিটাল রূপান্তরে কাজ করবে হুয়াওয়ে

শেয়ার করুন

আইফোন ১৩ নিয়ে এলো গ্রামীণফোন

আইফোন ১৩ নিয়ে এলো গ্রামীণফোন

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, গ্রাহকদের জন্য আইফোন সর্বশ্রেষ্ঠ লাইনআপ নিয়ে এসেছে গ্রামীণফোন, যার মধ্যে রয়েছে সৃজনী ও রুচির প্রশ্নে অনন্য আইফোন ১৩ প্রো, আইফোন ১৩ প্রো ম্যাক্স, আইফোন ১৩ এবং আইফোন ১৩ মিনি।

বাংলাদেশি গ্রাহকদের জন্য আইফোন ১৩ নিয়ে এসেছে দেশের সবচেয়ে বড় মোবাইল অপারেটর গ্রামীণফোন।

অপারেটরটির শুক্রবারের সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, গ্রাহকদের জন্য আইফোন সর্বশ্রেষ্ঠ লাইনআপ নিয়ে এসেছে গ্রামীণফোন, যার মধ্যে রয়েছে সৃজনী ও রুচির প্রশ্নে অনন্য আইফোন ১৩ প্রো, আইফোন ১৩ প্রো ম্যাক্স, আইফোন ১৩ এবং আইফোন ১৩ মিনি।

এতে উল্লেখ করা হয়, আগাগোড়া নতুন আঙ্গিকে সাজানো আইফোন ১৩ প্রো এবং আইফোন ১৩ প্রো ম্যাক্স ব্যবহারকারীদের দিচ্ছে আইফোনের সর্বকালের সেরা প্রোক্যামেরা সিস্টেম, প্রো-মোশন সমৃদ্ধ সুপার রেটিনা এক্সডিআর ডিসপ্লে, উন্নত ব্যাটারি লাইফ এবং অ্যাপলের ডিজাইনকৃত ফাইভ-কোর জিপিইউ সংবলিত এ১৫ বায়োনিক চিপ। মসৃণ ও টেকসই ডিজাইনের আইফোন ১৩ ও আইফোন ১৩ মিনিতে ব্যবহারকারীরা পাচ্ছেন আইফোনের সর্বকালের সেরা ডুয়াল ক্যামেরা সিস্টেম এবং শক্তিশালী এ১৫ বায়োনিক চিপ।

গ্ৰামীণফোনে আইফোন ১৩ সিরিজের হ্যান্ডসেটে প্রি-অর্ডার থাকছে ৩৬ মাস পর্যন্ত। নির্দিষ্ট ব্যাংকের ক্রেডিট কার্ডের মাধ্যমে শূন্য শতাংশ সুদে ইএমআইতে ক্রয়ের সুবিধা থাকছে। এ ছাড়াও থাকছে ফ্রি ১৪ জিবি ফোরজি ইন্টারনেটসহ (মেয়াদ ১৪ দিন) বিভিন্ন জিপি গিফট আইটেম, জিপি স্টার প্লাটিনাম প্লাস স্ট্যাটাস এবং বিভিন্ন জিপি স্টার পার্টনারের ডিসকাউন্ট কুপন।

ডিভাইস ইন্স্যুরেন্স সাবস্ক্রিপশনে ২০ শতাংশ ডিসকাউন্ট এবং স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড ব্যাংক ক্রেডিট কার্ডে ইএমআই ক্যাশব্যাক অফারও থাকছে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ২২ অক্টোবর থেকে গ্রাহকরা আইফোন ১৩ সিরিজের হ্যান্ডসেট প্রি-অর্ডার করতে পারবেন, যা তাদের হাতে পৌঁছে দেয়া হবে ২৯ অক্টোবর থেকে। প্রি-অর্ডার, মূল্যতালিকা ও প্রাপ্যতাসহ বিস্তারিত তথ্য জানা যাবে ওয়েবসাইটে

আরও পড়ুন:
তরুণদের নিয়ে আবার শুরু হুয়াওয়ের সিডস ফর দ্য ফিউচার
স্মার্ট ক্লাসরুম তৈরির সরঞ্জাম দিল হুয়াওয়ে
বৈশ্বিক চাপের মধ্যেও চমক হুয়াওয়ের
‘অনার’ ব্র্যান্ড বেচেই দিল হুয়াওয়ে
এশিয়া প্যাসিফিক অঞ্চলের ডিজিটাল রূপান্তরে কাজ করবে হুয়াওয়ে

শেয়ার করুন

দ্বিতীয় বর্ষপূর্তি পালন করল ‘ডিজিটাল স্কলার’

দ্বিতীয় বর্ষপূর্তি পালন করল ‘ডিজিটাল স্কলার’

দুই বছর পূর্তি উপলক্ষ্যে কেক কাটে ডিজিটাল স্কলার পরিবার।

দেশের তরুণ সমাজের বেকারত্ব দূরীকরণের লক্ষ্যে আইটি সেক্টরে বিভিন্ন দক্ষতা উন্নয়নমূলক প্রশিক্ষণ নিয়ে কাজ করছে ‘ডিজিটাল স্কলার’।

আইটি পেশা এবং ফ্রিল্যান্সিং প্রশিক্ষণ প্রদানকারী প্রতিষ্ঠান ‘ডিজিটাল স্কলার’ সম্প্রতি ২ বছর পূর্তি উদযাপন করেছে।

কোভিড-১৯ স্বাস্থ্যবিধি মেনে সীমিত পরিসরে দ্বিতীয় বর্ষপূর্তি অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। বর্ষপূর্তি অনুষ্ঠানে ‘ডিজিটাল স্কলার’-এর শিক্ষক, শিক্ষার্থীসহ বিশিষ্ট আইটি ব্যক্তিত্বরা উপস্থিত ছিলেন।

‘ডিজিটাল স্কলার’ থেকে শিক্ষার্থীরা বিভিন্ন বিষয়ে প্রশিক্ষণ নিয়ে ৬২ হাজার মার্কিন ডলারেরও বেশি অর্থ উপার্জন করেছেন। ফলে ভাগ্য পরিবর্তন হয়েছে অনেক তরুণ ও তাদের পরিবারের।

‘ডিজিটাল স্কলার’-এ এখন পর্যন্ত ২৮টি ব্যাচে প্রায় ১২ শতাধিক শিক্ষার্থী প্রশিক্ষণ নিয়েছেন। এদের মধ্যে বিভিন্ন মার্কেটপ্লেসে সফলভাবে ক্যারিয়ার গড়েছেন প্রায় ৩ শতাধিক শিক্ষার্থী।

দেশের তরুণ সমাজের বেকারত্ব দূরীকরণের লক্ষ্যে আইটি সেক্টরে বিভিন্ন দক্ষতা উন্নয়নমূলক প্রশিক্ষণ নিয়ে কাজ করছে ‘ডিজিটাল স্কলার’। সম্প্রতি তাদের স্মার্ট ক্যাম্পাস যাত্রা শুরু করেছে মিরপুর-১০ নম্বর গোল চত্বরের শাহ আলী প্লাজা, লেভেল ১১-তে।

ক্যাম্পাসটিতে রয়েছে ডিজিটাল ক্লাসরুম, স্টুডেন্ট সাপোর্ট সেন্টার, অনলাইন লাইভ ক্লাস রুম, মেন্টরশিপ প্রোগ্রাম ইত্যাদি।

প্রতিষ্ঠানটির চিফ এক্সিকিউটিভ অফিসার এন আলম মুন্না বলেন, ‘একটি আইটি প্রশিক্ষণ সেন্টারের সবচেয়ে বড় সফলতা হল এখানে আসা শিক্ষার্থীদের স্বপ্নগুলো বাস্তবায়ন করা। এই লক্ষ্যকে সামনে রেখেই আমরা আমাদের দক্ষ মেন্টর দ্বারা সাধারণ শিক্ষার্থীদের পরিপূর্ণ সাপোর্ট দিয়ে তাদের স্কিল ডেভেলপ করে যাচ্ছি। ক্রমবর্ধমান এই ধারাবাহিকতার মাধ্যমেই ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণে ডিজিটাল স্কলার তার অংশগ্রহণ নিশ্চিত করবে।’

আরও পড়ুন:
তরুণদের নিয়ে আবার শুরু হুয়াওয়ের সিডস ফর দ্য ফিউচার
স্মার্ট ক্লাসরুম তৈরির সরঞ্জাম দিল হুয়াওয়ে
বৈশ্বিক চাপের মধ্যেও চমক হুয়াওয়ের
‘অনার’ ব্র্যান্ড বেচেই দিল হুয়াওয়ে
এশিয়া প্যাসিফিক অঞ্চলের ডিজিটাল রূপান্তরে কাজ করবে হুয়াওয়ে

শেয়ার করুন