দেশি কোম্পানিতে জুনিয়র মেরিন অফিসার, ক্যাডেটদের কষ্টগাথা

দেশি কোম্পানিতে জুনিয়র মেরিন অফিসার, ক্যাডেটদের কষ্টগাথা

ব্যবসায় শিক্ষার মূলনীতি থেকে আমরা জানি ‘জোগান বাড়লে চাহিদা কমে আর জোগান কমলে চাহিদা বাড়ে।’ দুর্ভাগ্যক্রমে গত সাত-আট বছরে মেরিন ক্যাডেটদের জোগান চাহিদার চেয়ে কয়েকগুণ বেশি। ফলে মার্কেটে ক্যাডেটদের চাহিদা কমে গেছে, কমেছে মূল্যায়নও।

প্রায় প্রতিটি পেশাতেই ন্যূনতম বেতন স্কেল নির্দিষ্ট করা আছে। এমনকি লোকাল বাসেও দেখা যায় ‘সর্বনিম্ন ভাড়া’র উল্লেখ দেখা যায়। রিকশায় করে এক মিনিটের হাঁটা দূরত্বে গেলেও ১০ টাকার নিচে দেয়া যায় না। অন্যভাবে বলা যায়, রিকশার সর্বনিম্ন ভাড়া ১০ টাকা। কিন্তু আশ্চর্যজনক ভাবে সবার ধারণা করা ‘রয়েল প্রফেশন’ মেরিন ইঞ্জিনিয়ার/অফিসারদের কোনো সর্বনিম্ন বেতন কাঠামো নেই!

প্রতিবার জাহাজে যোগ দেয়ার আগে অনেকটা মাছের বাজারের মতো দরাদরি করে, হার-জিতের লড়াই শেষে একটি সমঝোতায় আসতে হয় ।

ব্যবসায় শিক্ষার মূলনীতি থেকে আমরা জানি ‘জোগান বাড়লে চাহিদা কমে আর জোগান কমলে চাহিদা বাড়ে’। দুর্ভাগ্যক্রমে গত সাত-আট বছরে মেরিন ক্যাডেটদের জোগান চাহিদার চেয়ে কয়েকগুণ বেশি। ফলে মার্কেটে ক্যাডেটদের চাহিদা কমে গেছে, কমেছে মূল্যায়নও।

২০১৩ সালে যেখানে আমি ২০০ ডলার পেয়েছি ক্যাডেট হিসেবে, এর কয়েক বছর পরেই তা ১০০ থেকে ৫০, এমনকি শূন্যতে নেমে আসার রেকর্ডও আছে। স্কুল-কলেজে সেরা ফলাফল করে, নিজের যোগ্যতা প্রমাণ করে একটা ছেলে-মেয়ে মেরিন ক্যাডেট হিসেবে চান্স পান। এরপর কঠোর নিয়মানুবর্তিতায় দুই বছরের ট্রেনিং শেষে তারা সমুদ্রে যাওয়ার জন্য প্রস্তুত হন। অথচ এমন কোয়ালিফাইড একজনের মাসের পর মাস গাধার মতো খাটুনির মূল্য মাত্র ‘বেঁচে থাকার খাবারটুকু’!

এই ১০০ থেকে ৫০ ডলার বা বিনামূল্যে পরিশ্রম করা ক্যাডেটদের নির্দিষ্ট সময়ের সি-সার্ভিস শেষে অফিসার হওয়ার পরীক্ষা দিতে হয়। বিভিন্ন কোর্স, পড়াশোনা, রিটেন, ভাইবা শেষ করে অফিসার হওয়ার সার্টিফিকেট পেতে বছরখানেক সময় লাগে, যে সময়টাতে তাদের উপার্জনের কোনো উপায় থাকে না। কোর্স, পরীক্ষার ফি, এক বছর দেশে থাকা-খাওয়ার খরচ ধরে ন্যূনতম আড়াই থেকে তিন লাখ টাকার একটা ধাক্কা সমস্ত সি-টাইম শেষ করা ক্যাডেটদের সামলাতে হয়। আমি জোর দিয়ে বলতে পারি, ৯৫% ক্যাডেট তাদের ক্যাডেটশিপে পাওয়া টাকা দিয়ে জুনিয়র অফিসার হওয়ার পরীক্ষা কমপ্লিট করতে পারেন না।

আর যারা নিরুপায় হয়ে বিনা বেতনের ‘কাবিখা’ প্রকল্পের গিনিপিগ হয়েছিলেন তাদের কথা চিন্তাই করতে পারি না। নিজেকে তাদের অবস্থায় ভাবতেই মাথা গুলিয়ে যায়। একটানা ১২ মাস মাথার ঘাম পায়ে ফেলে পরিশ্রম করার বিনিময়ে তাদের একটা পয়সাও জোটেনি!

চাকরি পেয়ে প্রথম মাসের টাকা নিয়ে আমাদের কতজনের কত স্বপ্ন থাকে, ইচ্ছা থাকে। অথচ তাদের এমন কোনো স্বপ্ন দেখার, ইচ্ছা পোষণ করার ক্ষমতাই কেড়ে নেয়া হয়। কতটা অসহায় হলে দেশের স্বনামধন্য প্রতিষ্ঠানের একজন ক্যাডেট এমন চুক্তিতে রাজি হতে পারেন তা অবশ্যই ভাবার বিষয়!

আগে যা বলছিলাম, ভাগ্যবান পাঁচ ভাগ বাদে প্রত্যেক ক্যাডেটকে জুনিয়র অফিসার হওয়ার পরীক্ষা দেয়ার সময় ঋণের বোঝায় জর্জরিত হতে হয়। এরা ঋণ করেন যাদের কাছ থেকে তারা আবার আরেক কপাল-পোড়া। বেশিরভাগ ক্ষেত্রে সি-টাইম শেষ করা এসব ক্যাডেটদের ঋণদাতা হন জাহাজের জুনিয়র অফিসাররা (থার্ড/ফোর্থ ইঞ্জিনিয়ার বা থার্ড/সেকেন্ড অফিসার)!

জুনিয়র অফিসারদের ‘কপাল-পোড়া’ বলার কারণ, বর্তমানে বেশিরভাগ দেশি কোম্পানির জাহাজে তাদের র‌্যাংকের বেতন অনেক ক্ষেত্রে রেটিংদের চেয়েও কম! ক্যাডেটের জোগান বেশি থাকায় জুনিয়র অফিসার র‍্যাংকেও জোগান বেড়ে গেছে। ফলে জুনিয়র অফিসারদের মূল্য কমে এখন রেটিংদেরও নীচে।

জোগান-চাহিদার সুযোগটা ব্যবসায়ীরা খুব ভালোভাবেই নিচ্ছেন। ২০১১-১২ সালে যেখানে জুনিয়র অফিসারদের বেতন ছিল ৩০০০ ডলারের উপরে, সেখানে ২০১৩-১৪ সালের পর এক ধাক্কায় জুনিয়র অফিসার র‍্যাংকের বেতন কমে তিন ডিজিটে নেমে এসেছে।

বর্তমান অবস্থা এমন যে, অনেক ক্যাডেট, জুনিয়র অফিসার আফসোস করেন, কেন এত পড়াশোনা করে, ২-৩ বছর সময় নষ্ট (!) করে ক্যাডেট হলেন! মাত্র ছয় মাসের ট্রেনিং নিয়ে রেটিং কেন হননি! কেননা জাহাজে যোগ দিয়ে তারা দেখেন, ছয় মাস ট্রেনিং করা একটা ছেলে প্রথম কন্ট্রাক্টে ওএস/ফায়ারম্যান হিসেবে ৪০০ ডলারের বেশি বেতন পান, অথচ ক্যাডেটদের বেতন ১৫০-২৫০ ডলার।

ফ্রেশ কিংবা এক্সপেরিয়েন্সড থার্ড অফিসার/ফোর্থ ইঞ্জিনিয়ারদের বেতন এবি, অয়েলার (জাহাজের রেটিং) থেকেও কম। এটা অবশ্যই বাংলাদেশি মেরিনারদের জন্য, মেরিন কমিউনিটির জন্য অত্যন্ত লজ্জাজনক একটি ব্যাপার যার কোনো সমাধান গত আট বছরেও হয়নি।

ছোট্ট এ জীবনের অভিজ্ঞতায় দেখেছি এ দেশে জোর গলায় আন্দোলন না করলে, রাস্তায় না নামলে কোনো যৌক্তিক দাবিও পূরণ হয় না। যেহেতু আমরা ‘ভাসমান’ একটি ছোট্ট কমিউনিটি এবং আমরা শান্তিপ্রিয় ‘রয়েল মেরিনার’, তাই রাস্তায় নেমে আন্দোলন করা আমাদের দ্বারা হয়ে ওঠে না। তাছাড়া, অন্যান্য কমিউনিটির মতো এসব ক্ষেত্রে আমাদের শক্তিশালী একতাও নেই যে, আমরা কর্মবিরতিতে যাব দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত।

কেউ একজন কম বেতনে যাবে না বললে আরেকজন লুফে নেবে সে প্রস্তাব! এমনকি ২০-৫০ হাজার টাকা উৎকোচ দিতেও অনেকে কার্পণ্য করবেন না। আর আমাদের যারা ঠকাচ্ছেন তারা এ ব্যাপারগুলো ভালোভাবেই জানেন।

আমাদের পেশাটি যেহেতু ‘আন্তর্জাতিক’, তাই বেতনও আন্তর্জাতিক মান অনুযায়ী হওয়া উচিত। আমার ব্যক্তিগত অভিজ্ঞতা আর বিবেচনা অনুযায়ী, ক্যাডেটদের ন্যূনতম বেতন ৫০০ ডলার, আর জুনিয়র অফিসারদের শুরুর বেতন নূন্যতম ৩০০০ ডলার হওয়া উচিত। জাহাজের প্রকারভেদে অফিসারদের বেতন এর চেয়ে কিছুটা কম-বেশি হতে পারে।

মেরিনারদের অধিকার রক্ষায় বাংলাদেশ সরকারের সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় এবং বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পদে থাকা আমাদের সিনিয়রদের দৃষ্টি আকর্ষণের জন্যই এ লেখা। এখানে বেশির ভাগ দেশি কোম্পানির জাহাজে চাকরি করা ক্যাডেট এবং জুনিয়র অফিসারদের দুরাবস্থা তুলে ধরেছি, এর একটি সুন্দর সমাধানই সমস্ত বাংলাদেশি মেরিনারদের কাম্য।

লেখক: এক্স-ক্যাডেট, বাংলাদেশ মেরিন একাডেমি (৪৭তম ব্যাচ)

আরও পড়ুন:
মেরিন একাডেমির ক্যাডেট মানেই অবিচ্ছিন্ন বন্ধন
মেরিনারের সামনে দেশের ব্র্যান্ডিংয়ের চ্যালেঞ্জ   
আয়, আরেকটিবার আয়রে সখা…
মেরিনার হওয়ার আগে জেনে নিন
মনের নোঙর পড়ে থাকে সারেঙ বাড়ির ঘরে

শেয়ার করুন

মন্তব্য

৪৩তম বিসিএস: ৩৬৯ কেন্দ্রে হবে প্রিলিমিনারি পরীক্ষা

৪৩তম বিসিএস: ৩৬৯ কেন্দ্রে হবে প্রিলিমিনারি পরীক্ষা

৪৩তম বিসিএসের মাধ্যমে সরকার বিভিন্ন ক্যাডারে ১ হাজার ৮১৪ জনকে নিয়োগ দেবে। এর মধ্যে প্রশাসন ক্যাডারে নিয়োগ দেয়া হবে ৩০০ জনকে। পুলিশের এএসপি পদে নিয়োগ দেয়া হবে ১০০ জনকে। এ ছাড়া পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে নিয়োগ দেয়া হবে ২৫ জনকে। শিক্ষায় সবচেয়ে বেশি ৮৪৩ ক্যাডার নিয়োগ দেয়া হবে।

সরকারি কর্মকমিশনের (পিএসসি) আওতায় ৪৩তম বিসিএসের প্রিলিমিনারি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে আগামী ২৯ অক্টোবর। দেশের আটটি বিভাগের ৩৬৯টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে এ পরীক্ষা আয়োজন করা হবে।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন পিএসসির পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক (ক্যাডার) নূর আহমদ।

এ উপলক্ষে পরীক্ষার্থীদের জন্য কিছু নির্দেশনাও জারি করেছে পিএসসি।

পরীক্ষাসংক্রান্ত নির্দেশনা

১. প্রার্থীদের আট ডিজিটের রেজিস্ট্রেশন নম্বর উত্তরপত্রের প্রযোজ্য ঘরে কালো কালির বল পয়েন্ট কলম দিয়ে লিখে বৃত্ত ভরাট করতে হবে।

২. প্রতিটি উত্তরপত্রে সেট নম্বরের নির্ধারিত স্থানে সেট নম্বর এবং সেট নম্বরের জন্য নিচে বৃত্ত থাকবে। প্রার্থীদের উত্তরপত্রে সেট নম্বর লেখা এবং সেট নম্বরের বৃত্ত ভরাট করার প্রয়োজন হবে না। সকাল ১০টায় প্রশ্ন পাওয়ার পর প্রার্থী তার প্রশ্নপত্রের সেট নম্বর এবং উত্তরপত্রের সেট নম্বর একই কি না সেটি চেক করে নিশ্চিত হবেন। উত্তরপত্রের সেট নম্বর একই না হলে সঙ্গে সঙ্গে পরিদর্শককে জানাতে হবে।

৩. প্রশ্নপত্র দেয়ার পর (সকাল ১০টা) কোনো প্রার্থীকে পরীক্ষার হলে ঢুকতে দেয়া হবে না। প্রশ্ন নেয়ার পর পরীক্ষা শেষ না হওয়া পর্যন্ত (দুপুর ১২টা পর্যন্ত) কোনো প্রার্থী পরীক্ষা কক্ষ ত্যাগ করতেও পারবেন না।

৪. কোনো প্রার্থীর ছবি, স্বাক্ষর, প্রবেশপত্র এবং উত্তরপত্রের নাম ও রেজিস্ট্রেশন নম্বরের গড়মিলসহ কোনো ধরনের অনিয়ম ধরা পড়লে ওই প্রার্থীর প্রার্থিতা বাতিলসহ তার বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে।

৫. পরীক্ষাকেন্দ্রে বইপুস্তক, সব ধরনের ঘড়ি, মোবাইল ফোন, ক্যালকুলেটর, সব ধরনের ইলেকট্রনিক ডিভাইস, ব্যাংক কার্ড বা ক্রেডিট কার্ড ধরনের কোনো ডিভাইস, গহনা ও ব্যাগ আনা সম্পূর্ণ নিষেধ।

০৬. পরীক্ষা হলের গেটে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট পুলিশের উপস্থিতিতে প্রবেশপত্র এবং মেটাল ডিটেক্টরের সাহায্যে মোবাইল ফোন, ঘড়ি, ইলেকট্রনিক ডিভাইসসহ নিষিদ্ধ সামগ্রী তল্লাশির মধ্য দিয়ে প্রার্থীদের পরীক্ষার হলে প্রবেশ করতে হবে।

৭. পরীক্ষার সময় প্রার্থীরা কানের ওপর কোনো আবরণ রাখতে পারবেন না। কান খোলা রাখতে হবে। কানে কোনো ধরনের হিয়ারিং এইড ব্যবহারের প্রয়োজন হলে বিশেষজ্ঞ ডাক্তারের পরামর্শপত্রসহ কমিশনের অনুমোদন নিতে হবে।

৮. প্রার্থীদের কেন্দ্র পরিবর্তনের কোনো আবেদন বিবেচনা করা হবে না।

৯. প্রার্থীর আবেদনপত্রে গুরুতর ত্রুটি ধরা পড়লে পরীক্ষার আগে বা পরে যেকোনো পর্যায়ে উক্ত প্রার্থীর প্রার্থিতা বাতিল হবে।

১০. ৪৩তম বিসিএস পরীক্ষা-২০২০-এর প্রিলিমিনারি টেস্টের ওএমআর উত্তরপত্রের দুটি অংশ থাকবে। প্রথম অংশে প্রার্থীর নাম, রেজিস্ট্রেশন নম্বর, সেট নম্বর এবং স্বাক্ষরের স্থান থাকবে। দ্বিতীয় অংশে ২০০টি উত্তর দেয়ার জন্য ১-২০০ পর্যন্ত ক্রম অনুযায়ী বৃত্ত থাকবে।

গত বছরের ৩০ নভেম্বর ৪৩তম সাধারণ বিসিএসের জন্য বিজ্ঞপ্তি দেয় পিএসসি। ৩০ ডিসেম্বর থেকে শুরু হয় আবেদন প্রক্রিয়া। শুরুতে আবেদনের শেষ সময় এ বছরের ৩১ জানুয়ারি করা হলেও পরে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের সুপারিশে সময় বাড়িয়ে ৩১ মার্চ পর্যন্ত করা হয়।

৪৩তম বিসিএসের মাধ্যমে সরকার বিভিন্ন ক্যাডারে ১ হাজার ৮১৪ জনকে নিয়োগ দেবে। এর মধ্যে প্রশাসন ক্যাডারে নিয়োগ দেয়া হবে ৩০০ জনকে।

পুলিশের এএসপি পদে নিয়োগ দেয়া হবে ১০০ জনকে। এ ছাড়া পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে নিয়োগ দেয়া হবে ২৫ জনকে। শিক্ষায় সবচেয়ে বেশি ৮৪৩ ক্যাডার নিয়োগ দেয়া হবে।

এ ছাড়া অডিটে ৩৫ জন, ট্যাক্সে ১৯, কাস্টমসে ১৪, সমবায়ে ২০, ডেন্টাল সার্জন পদে ৭৫ ও অন্যান্য ক্যাডারে নিয়োগ দেয়া হবে ৩৮৩ জনকে।

আরও পড়ুন:
মেরিন একাডেমির ক্যাডেট মানেই অবিচ্ছিন্ন বন্ধন
মেরিনারের সামনে দেশের ব্র্যান্ডিংয়ের চ্যালেঞ্জ   
আয়, আরেকটিবার আয়রে সখা…
মেরিনার হওয়ার আগে জেনে নিন
মনের নোঙর পড়ে থাকে সারেঙ বাড়ির ঘরে

শেয়ার করুন

বরগুনা জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে নিয়োগ

বরগুনা জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে নিয়োগ

পরীক্ষার ফি বাবদ ৫০০ টাকার পে-অর্ডার আবেদনপত্রের সঙ্গে সংযুক্ত করতে হবে।

ইউনিয়ন পরিষদ সচিব পদে জনবল নিয়োগের জন্য বিজ্ঞপ্তি দিয়েছে বরগুনা জেলা প্রশাসকের কার্যালয়। আগ্রহী প্রার্থীকে ২৮ নভেম্বরের মধ্যে ডাকে আবেদনপত্র পাঠাতে হবে।

পদের নাম: ইউনিয়ন পরিষদ সচিব

পদের সংখ্যা: ৪টি

চাকরির গ্রেড: ১৪

বেতন স্কেল: ১০২০০-২৪৬৮০ টাকা

চাকরির ধরন: অস্থায়ী

শিক্ষাগত যোগ্যতা: স্নাতক / সমমান

প্রার্থীকে নির্ধারিত ফরমে আবেদন করতে হবে। ফরম পেতে এখানে ক্লিক করুন।

২০২১ সালের ২৮ নভেম্বর প্রার্থীর বয়স ১৮ থেকে ৩০ বছরের মধ্যে হতে হবে। তবে শারীরিক প্রতিবন্ধী, মুক্তিযোদ্ধা, শহীদ মুক্তিযোদ্ধার সন্তান-পোষ্যদের ক্ষেত্রে বয়স ৩২ বছর পর্যন্ত শিথিলযোগ্য। বয়স প্রমাণের ক্ষেত্রে অ্যাফিডেভিট গ্রহণযোগ্য হবে না।

চাকরিরত প্রার্থীদের যথাযথ কর্তৃপক্ষের মাধ্যমে আবেদন করতে হবে।

খামের ওপরে পদের নাম এবং কোটা উল্লেখ করতে হবে।

আবেদনপত্রের সঙ্গে নিজ ঠিকানাসংবলিত ১০ টাকার ডাকটিকিট যুক্ত ৯.৫ X ৪.৫ ইঞ্চি মাপের একটি ফেরত খাম দিতে হবে।

পরীক্ষার ফি বাবদ ৫০০ টাকার পে-অর্ডার আবেদনপত্রের সঙ্গে সংযুক্ত করতে হবে।

বিজ্ঞপ্তিটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন।

আরও পড়ুন:
মেরিন একাডেমির ক্যাডেট মানেই অবিচ্ছিন্ন বন্ধন
মেরিনারের সামনে দেশের ব্র্যান্ডিংয়ের চ্যালেঞ্জ   
আয়, আরেকটিবার আয়রে সখা…
মেরিনার হওয়ার আগে জেনে নিন
মনের নোঙর পড়ে থাকে সারেঙ বাড়ির ঘরে

শেয়ার করুন

এসএসসি পাসে খুলনা সিটি করপোরেশনে স্থায়ী চাকরি

এসএসসি পাসে খুলনা সিটি করপোরেশনে স্থায়ী চাকরি

প্রার্থীকে জন্মসূত্রে বাংলাদেশের স্থায়ী নাগরিক হতে হবে। তাকে নিজ হাতে লিখে আবেদনপত্র পাঠাতে হবে।

শূন্য পদে জনবল নিয়োগের জন্য বিজ্ঞপ্তি দিয়েছে খুলনা সিটি করপোরেশন। আগ্রহী প্রার্থীকে ২৫ অক্টোবর থেকে ২৩ নভেম্বরের মধ্যে ডাকে আবেদনপত্র পাঠাতে হবে।

১. পদের নাম: প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা

পদের সংখ্যা: ১টি

বেতন স্কেল: ৩৫৫০০-৬৭০১০ টাকা

শিক্ষাগত যোগ্যতা: এমবিবিএস

২. পদের নাম: সহকারী হেলথ কর্মকর্তা

পদের সংখ্যা: ১টি

বেতন স্কেল: ২৩০০০-৫৫৪৭০ টাকা

শিক্ষাগত যোগ্যতা: এমবিবিএস

৩. পদের নাম: রাজস্ব অফিসার

পদের সংখ্যা: ১টি

বেতন স্কেল: ২২০০০-৫৩০৬০ টাকা

শিক্ষাগত যোগ্যতা: স্নাতকোত্তর

৪. পদের নাম: চিফ অ্যাসেসর

পদের সংখ্যা: ১টি

বেতন স্কেল: ১৬০০০-৩৮৬৪০ টাকা

শিক্ষাগত যোগ্যতা: স্নাতক

৫. পদের নাম: হিসাবরক্ষক

পদের সংখ্যা: ১টি

বেতন স্কেল: ১১০০০-২৬৫৯০ টাকা

শিক্ষাগত যোগ্যতা: স্নাতক

৬. পদের নাম: স্যানিটারি ইন্সপেক্টর

পদের সংখ্যা: ৪টি

বেতন স্কেল: ১১০০০-২৬৫৯০ টাকা

শিক্ষাগত যোগ্যতা: এইচএসসি / সমমান

৭. পদের নাম: উচ্চমান সহকারী

পদের সংখ্যা: ৪টি

বেতন স্কেল: ১০২০০-২৪৬৮০ টাকা

শিক্ষাগত যোগ্যতা: স্নাতক / সমমান

৮. পদের নাম: সুপারিনটেনডেন্ট (অ্যাসেসমেন্ট)

পদের সংখ্যা: ১টি

বেতন স্কেল: ১০২০০-২৪৬৮০ টাকা

শিক্ষাগত যোগ্যতা: স্নাতক

৯. পদের নাম: সহকারী হিসাব রক্ষক

পদের সংখ্যা: ১টি

বেতন স্কেল: ১০২০০-২৪৬৮০ টাকা

শিক্ষাগত যোগ্যতা: স্নাতক

১০. পদের নাম: গোপন সহকারী

পদের সংখ্যা: ২টি

বেতন স্কেল: ৯৩০০-২২৪৯০ টাকা

শিক্ষাগত যোগ্যতা: এইচএসসি / সমমান

১১. পদের নাম: হিসাব সহকারী

পদের সংখ্যা: ৪টি

বেতন স্কেল: ৯৩০০-২২৪৯০ টাকা

শিক্ষাগত যোগ্যতা: এইচএসসি

১২. পদের নাম: লাইসেন্স ইন্সপেক্টর

পদের সংখ্যা: ২টি

বেতন স্কেল: ৯৩০০-২২৪৯০ টাকা

শিক্ষাগত যোগ্যতা: এইচএসসি / সমমান

১৩. পদের নাম: সহকারী ক্যাশিয়ার

পদের সংখ্যা: ১টি

বেতন স্কেল: ৯৩০০-২২৪৯০ টাকা

শিক্ষাগত যোগ্যতা: এইচএসসি

১৪. পদের নাম: আদায়কারী সরকার

পদের সংখ্যা: ১৬টি

বেতন স্কেল: ৯৩০০-২২৪৯০ টাকা

শিক্ষাগত যোগ্যতা: এইচএসসি / সমমান

১৫. পদের নাম: নিম্নমান সহকারী

পদের সংখ্যা: ১৪টি

বেতন স্কেল: ৯৩০০-২২৪৯০ টাকা

শিক্ষাগত যোগ্যতা: এইচএসসি / সমমান

১৬. পদের নাম: মুদ্রাক্ষরিক

পদের সংখ্যা: ৪টি

বেতন স্কেল: ৯৩০০-২২৪৯০ টাকা

শিক্ষাগত যোগ্যতা: এইচএসসি / সমমান

১৭. পদের নাম: কম্পাউন্ডার

পদের সংখ্যা: ২টি

বেতন স্কেল: ৯৩০০-২২৪৯০ টাকা

শিক্ষাগত যোগ্যতা: এইচএসসিসহ ফার্মাসিস্ট

১৮. পদের নাম: স্বাস্থ্য সহকারী

পদের সংখ্যা: ১টি

বেতন স্কেল: ৯৩০০-২২৪৯০ টাকা

শিক্ষাগত যোগ্যতা: এইচএসসি / সমমান

১৯. পদের নাম: টিকাদার

পদের সংখ্যা: ১৭টি

বেতন স্কেল: ৯৩০০-২২৪৯০ টাকা

শিক্ষাগত যোগ্যতা: এইচএসসি / সমমান

২০. পদের নাম: কনঃ সুপারভাইজার

পদের সংখ্যা: ১২টি

বেতন স্কেল: ৯৩০০-২২৪৯০ টাকা

শিক্ষাগত যোগ্যতা: এইচএসসি / সমমান

২১. পদের নাম: আদায়কারী (কসাইখানা)

পদের সংখ্যা: ১টি

বেতন স্কেল: ৯০০০-২১৮০০ টাকা

শিক্ষাগত যোগ্যতা: এসএসসি / সমমান

২২. পদের নাম: টোল আদায়কারী

পদের সংখ্যা: ১৮টি

বেতন স্কেল: ৯০০০-২১৮০০ টাকা

শিক্ষাগত যোগ্যতা: এসএসসি / সমমান

২৩. পদের নাম: দপ্তরি

পদের সংখ্যা: ১টি

বেতন স্কেল: ৮৮০০-২১৩১০ টাকা

শিক্ষাগত যোগ্যতা: এসএসসি

২৪. পদের নাম: মোল্লা কাম মোহরার / কেয়ারটেকার

পদের সংখ্যা: ২টি

বেতন স্কেল: ৮৮০০-২১৩১০ টাকা

শিক্ষাগত যোগ্যতা: দাখিল

২৫. পদের নাম: অফিস সহায়ক

পদের সংখ্যা: ৭টি

বেতন স্কেল: ৮২৫০-২০০১০ টাকা

শিক্ষাগত যোগ্যতা: অষ্টম শ্রেণি

প্রার্থীকে জন্মসূত্রে বাংলাদেশের স্থায়ী নাগরিক হতে হবে। নিজ হাতে লিখিত আবেদনপত্র পাঠাতে হবে।

পুরুষ ও মহিলার ক্ষেত্রে বয়সসীমা ১ নং পদের জন্য ২০২১ সালের ২৩ নভেম্বর তারিখে ১৮ থেকে ৩৫ বছর। ৩ নং পদের প্রার্থীর বয়সসীমা একই তারিখে ১৮ থেকে ৪২ বছরের মধ্যে হতে হবে।

অন্যান্য পদের প্রার্থীর বয়সসীমা ২০২১ সালের ২৩ নভেম্বর ১৮ থেকে ৩০ বছরের মধ্যে হতে হবে। তবে শারীরিক প্রতিবন্ধী, মুক্তিযোদ্ধা, শহীদ মুক্তিযোদ্ধার সন্তান-পোষ্যদের ক্ষেত্রে বয়স ৩২ বছর পর্যন্ত শিথিলযোগ্য। বয়স প্রমাণের ক্ষেত্রে এফিডেভিট গ্রহণযোগ্য হবে না।

১ থেকে ৩ নং পদের জন্য ৫০০ টাকা, ৪ নং পদের জন্য ৪০০ টাকা, ৫ থেকে ২৪ নং পদের জন্য ৩০০ টাকা এবং ২৫ নং পদের জন্য ২০০ টাকার ব্যাংক ড্রাফট / পে-অর্ডার আবেদনপত্রের সঙ্গে জমা দিতে হবে।

আবেদনপত্র পাঠানোর ঠিকানা: মেয়র মহোদয়, খুলনা সিটি করপোরেশন, খুলনা।

বিজ্ঞপ্তিটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন।

আরও পড়ুন:
মেরিন একাডেমির ক্যাডেট মানেই অবিচ্ছিন্ন বন্ধন
মেরিনারের সামনে দেশের ব্র্যান্ডিংয়ের চ্যালেঞ্জ   
আয়, আরেকটিবার আয়রে সখা…
মেরিনার হওয়ার আগে জেনে নিন
মনের নোঙর পড়ে থাকে সারেঙ বাড়ির ঘরে

শেয়ার করুন

পরিচালক নিচ্ছে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়

পরিচালক নিচ্ছে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়

আবেদন ফরম পূরণ করার পর প্রার্থীকে অনলাইন অ্যাপ্লিকেশন ফরমের প্রিন্ট কপিসহ সব ডকুমেন্টসের সত্যায়িত কপি ডাকে / কুরিয়ারে / হাতে হাতে পাঠাতে হবে।

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় শূন্য পদে জনবল নিয়োগের জন্য বিজ্ঞপ্তি দিয়েছে। আগ্রহী প্রার্থীকে ২৫ নভেম্বরের মধ্যে অনলাইনে ফরম পূরণের মাধ্যমে আবেদন করতে হবে।

পদের নাম: পরিচালক

পদের সংখ্যা: ১টি

চাকরির গ্রেড: ৩

বেতন স্কেল: ৫৬৫০০-৭৪৪০০ টাকা

বয়স: সর্বনিম্ন ৪৫ বছর

শিক্ষাগত যোগ্যতা: স্নাতকোত্তর

অভিজ্ঞতা: ১৫ বছর

আবেদন ফি: ১০০০ টাকা

অনলাইনে আবেদন করার জন্য এখানে ক্লিক করুন।

আবেদন ফরম পূরণ করার পর প্রার্থীকে অনলাইন অ্যাপ্লিকেশন ফরমের প্রিন্ট কপিসহ সব ডকুমেন্টসের সত্যায়িত কপি ডাকে / কুরিয়ারে / হাতে হাতে পাঠাতে হবে।

ঠিকানা: রেজিস্ট্রার, জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়, গাজীপুর-১৭০৪।

সাক্ষাৎকারের সময় মূল সনদ এবং অন্যান্য কাগজপত্র সঙ্গে আনতে হবে।

বিজ্ঞপ্তিটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন।

আরও পড়ুন:
মেরিন একাডেমির ক্যাডেট মানেই অবিচ্ছিন্ন বন্ধন
মেরিনারের সামনে দেশের ব্র্যান্ডিংয়ের চ্যালেঞ্জ   
আয়, আরেকটিবার আয়রে সখা…
মেরিনার হওয়ার আগে জেনে নিন
মনের নোঙর পড়ে থাকে সারেঙ বাড়ির ঘরে

শেয়ার করুন

বিমান বাহিনীতে অফিসার ক্যাডেট পদে যোগ দিন

বিমান বাহিনীতে অফিসার ক্যাডেট পদে যোগ দিন

বাংলাদেশ মিলিটারি একাডেমিতে ১০ সপ্তাহসহ বাংলাদেশ বিমান বাহিনী একাডেমিতে ৩ বছর মেয়াদি প্রশিক্ষণ শেষে ফ্লাইং অফিসার পদবিতে নিয়মিত কমিশন পাবেন। কমিশনপ্রাপ্তির পরবর্তী ১ বছরসহ মোট ৪ বছর মেয়াদি স্নাতক (সম্মান) ডিগ্রি দেয়া হবে।

অফিসার ক্যাডেট পদে জনবল নিয়োগের জন্য বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছে বাংলাদেশ বিমান বাহিনী। আগ্রহী প্রার্থীকে ২০২১ সালের ২৬ অক্টোবর থেকে ২০২২ সালের ২৭ ফেব্রুয়ারির মধ্যে অনলাইনে ফরম পূরণের মাধ্যমে আবেদন করতে হবে।

পদের নাম: অফিসার ক্যাডেট

নাগরিকত্ব: বাংলাদেশি নারী ও পুরুষ নাগরিক

বৈবাহিক অবস্থা: অবিবাহিত

বয়স: ১৬ বছর ৬ মাস থেকে ২২ বছর (৭ জুলাই ২০২২ তারিখে)

উচ্চতা: পুরুষ ৬৪ ইঞ্চি, নারী জিডিপি ৬৪ ইঞ্চি, অন্যান্য ৬২ ইঞ্চি

বুকের মাপ: পুরুষ ৩২ ইঞ্চি ও প্রসারণ ২ ইঞ্চি, নারী ২৮ ইঞ্চি ও প্রসারণ ২ ইঞ্চি

ওজন: বয়স ও উচ্চতা অনুযায়ী

চোখ: জিডিপি শাখার প্রার্থীদের দৃষ্টিশক্তি ৬/৬, অন্যদের বিধি অনুসারে

শিক্ষাগত যোগ্যতা

১. জিডি(পি)

মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক অথবা সমমানের পরীক্ষায় বিজ্ঞান বিভাগ থেকে জিপিএ ৪.৫০ এবং পদার্থ ও গণিতে কমপক্ষে লেটার গ্রেড এ থাকতে হবে।

ও লেভেলে পদার্থ ও গণিতসহ কমপক্ষে ৫টি বিষয়ে লেটার গ্রেড বি এবং এ লেভেলে পদার্থ ও গণিতে কমপক্ষে লেটার গ্রেড বি থাকতে হবে।

২. লজিস্টিক / এটিসি / এডিডব্লিউসি / মিটিওরলজিক্যাল

মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক অথবা সমমানের পরীক্ষায় বিজ্ঞান বিভাগ থেকে জিপিএ ৪.৫০ এবং পদার্থ ও গণিতে কমপক্ষে লেটার গ্রেড এ থাকতে হবে।

ও লেভেলে পদার্থ ও গণিতসহ কমপক্ষে ৫টি বিষয়ে লেটার গ্রেড বি এবং এ লেভেলে পদার্থ ও গণিতে কমপক্ষে লেটার গ্রেড বি থাকতে হবে।

৩. ফিন্যান্স

মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক অথবা সমমানের পরীক্ষায় জিপিএ ৪.৫০ এবং উভয় পরীক্ষায় গণিত / হিসাববিজ্ঞানে কমপক্ষে লেটার গ্রেড এ থাকতে হবে।

ও লেভেলে গণিত / হিসাববিজ্ঞানসহ কমপক্ষে ৫টি বিষয়ে লেটার গ্রেড বি এবং এ লেভেলে গণিত / হিসাববিজ্ঞানসহ কমপক্ষে ২টি বিষয়ে লেটার গ্রেড বি থাকতে হবে।

৪. অ্যাডমিন

মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক অথবা সমমানের পরীক্ষায় যেকোনো শাখায় জিপিএ ৪.৫০ থাকতে হবে।

ও লেভেলে কমপক্ষে ৫টি বিষয়ে লেটার গ্রেড বি এবং এ লেভেলে ২টি বিষয়ে লেটার গ্রেড বি থাকতে হবে।

বিমান বাহিনীতে অফিসার ক্যাডেট পদে যোগ দিন
পরীক্ষার তারিখ ও কেন্দ্র

বাংলাদেশ মিলিটারি একাডেমিতে ১০ সপ্তাহসহ বাংলাদেশ বিমান বাহিনী একাডেমিতে ৩ বছর মেয়াদি প্রশিক্ষণ শেষে ফ্লাইং অফিসার পদবিতে নিয়মিত কমিশন পাবেন। কমিশন প্রাপ্তির পরবর্তী ১ বছরসহ মোট ৪ বছর মেয়াদি স্নাতক (সম্মান) ডিগ্রি দেয়া হবে।

প্রশিক্ষণকালীন অফিসার ক্যাডেটদের মাসিক বেতন ১০,০০০ টাকা এবং প্রশিক্ষণ শেষে পদবি অনুসারে আকর্ষণীয় বেতন ও ভাতা দেয়া হবে।

অনলাইনে আবেদন করতে এখানে এবং বিজ্ঞপ্তিটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন।

আরও পড়ুন:
মেরিন একাডেমির ক্যাডেট মানেই অবিচ্ছিন্ন বন্ধন
মেরিনারের সামনে দেশের ব্র্যান্ডিংয়ের চ্যালেঞ্জ   
আয়, আরেকটিবার আয়রে সখা…
মেরিনার হওয়ার আগে জেনে নিন
মনের নোঙর পড়ে থাকে সারেঙ বাড়ির ঘরে

শেয়ার করুন

সাধারণ আনসার পদে যোগ দিন

সাধারণ আনসার পদে যোগ দিন

আবেদনপত্র পূরণের সময় রেজিস্ট্রেশন ফি বাবদ অফেরতযোগ্য ২০০ টাকা বিকাশ, রকেট অথবা মোবিক্যাশ মোবাইল ব্যাংকিং সিস্টেমের মাধ্যমে জমা দিতে হবে।

বাংলাদেশ আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনী ‘সাধারণ আনসার’ নিয়োগের জন্য বিজ্ঞপ্তি দিয়েছে। আগ্রহী প্রার্থীকে ৬ নভেম্বরের মধ্যে অনলাইনে আবেদনপত্র পূরণ করতে হবে।

শুধুমাত্র বাংলাদেশি পুরুষ নাগরিকরা এই পদে আবেদন করতে পারবেন।

২০২১ সালের ২৫ অক্টোবর প্রার্থীর বয়স সর্বনিম্ন ১৮ বছর এবং ২০২১ সালের ৬ নভেম্বর তারিখে সর্বোচ্চ ৩০ বছর হতে পারবে।

প্রার্থীকে ন্যূনতম জেএসসি অথবা সমমানের পরীক্ষায় পাস হতে হবে।

উচ্চতা কমপক্ষে ৫ ফুট ৪ ইঞ্চি হতে হবে। তবে অধিক উচ্চতাসম্পন্নদের অগ্রাধিকার দেয়া হবে।

বুকের মাপ ৩০/৩২ ইঞ্চি। দৃষ্টি শক্তি ৬/৬।

আবেদনপত্র পূরণের সময় রেজিস্ট্রেশন ফি বাবদ অফেরতযোগ্য ২০০ টাকা বিকাশ, রকেট অথবা মোবিক্যাশ মোবাইল ব্যাংকিং সিস্টেমের মাধ্যমে জমা দিতে হবে।

আবেদনপত্র দাখিল ও ফি পরিশাধে সমস্যা হলে পরামর্শের জন্য ০১৬২৯৪৬৪২৮৯, ০১৫৩৪৭২৬৫৩৫ অথবা ০১৮৪০১৯৭২০৭ নম্বরে যোগাযোগ করতে হবে।

রেজিস্ট্রেশন সম্পন্ন হলে প্রবেশপত্রটি প্রিন্ট করে সংরক্ষণ করতে হবে এবং বাছাইয়ের সময় অবশ্যই তা প্রদর্শন করতে হবে।

বাছাইয়ের সময় শিক্ষাগত যোগ্যতার সনদপত্র, জাতীয় পরিচয়পত্র, চারিত্রিক সনদপত্র, নাগরিকত্ব সনদপত্রের মূলকপি ও সত্যায়িত ফটোকপি আনতে হবে। ৪ কপি পাসপোর্ট সাইজের রঙিন ছবিও আনতে হবে।

মনে রাখতে হবে, অঙ্গীভূত আনসারদের চাকরি স্থায়ী সরকারি চাকরি নয়।

অনলাইনে আবেদন করার জন্য এখানে ও বিজ্ঞপ্তিটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন।

আরও পড়ুন:
মেরিন একাডেমির ক্যাডেট মানেই অবিচ্ছিন্ন বন্ধন
মেরিনারের সামনে দেশের ব্র্যান্ডিংয়ের চ্যালেঞ্জ   
আয়, আরেকটিবার আয়রে সখা…
মেরিনার হওয়ার আগে জেনে নিন
মনের নোঙর পড়ে থাকে সারেঙ বাড়ির ঘরে

শেয়ার করুন

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে সহযোগী অধ্যাপক পদে যোগ দিন

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে সহযোগী অধ্যাপক পদে যোগ দিন

প্রার্থীকে এডুকেশনাল অ্যান্ড কাউন্সেলিং সাইকোলজি বিষয়ে উচ্চতর ডিগ্রিধারী হতে হবে। থাকতে হবে পিএইচডি বা সমমানের ডিগ্রি।

এডুকেশনাল অ্যান্ড কাউন্সেলিং সাইকোলজি বিভাগে সহযোগী অধ্যাপক নিয়োগের জন্য বিজ্ঞপ্তি দিয়েছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়। আগ্রহী প্রার্থীকে ২১ নভেম্বরের মধ্যে নির্ধারিত ফরমে আবেদন করতে হবে।

পদের নাম: সহযোগী অধ্যাপক

বিভাগ: এডুকেশনাল অ্যান্ড কাউন্সেলিং সাইকোলজি

পদের সংখ্যা: ১টি

চাকরির ধরন: স্থায়ী

বেতন স্কেল: ৫০০০০-৭১২০০ টাকা

অভিজ্ঞতা: ৭ বছর

আবেদন ফি: ১০০০ টাকা

প্রার্থীকে এডুকেশনাল অ্যান্ড কাউন্সেলিং সাইকোলজি বিষয়ে উচ্চতর ডিগ্রিধারী হতে হবে। থাকতে হবে পিএইচডি বা সমমানের ডিগ্রি।

প্রার্থীকে সার্টিফিকেট, প্রশংসাপত্র, মার্কসিট ও অভিজ্ঞতার প্রমাণপত্রের সত্যায়িত কপিসহ আবেদন করতে হবে।

মোট ১১ কপি দরখাস্ত জমা দিতে হবে। আবেদনের শেষ তারিখ ২১ নভেম্বর।

ঠিকানা: রেজিস্ট্রার, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, ঢাকা-১০০০।

বিজ্ঞপ্তিটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন।

আরও পড়ুন:
মেরিন একাডেমির ক্যাডেট মানেই অবিচ্ছিন্ন বন্ধন
মেরিনারের সামনে দেশের ব্র্যান্ডিংয়ের চ্যালেঞ্জ   
আয়, আরেকটিবার আয়রে সখা…
মেরিনার হওয়ার আগে জেনে নিন
মনের নোঙর পড়ে থাকে সারেঙ বাড়ির ঘরে

শেয়ার করুন