১ মাসে বাড়ল ৩৬ লাখ ইন্টারনেট গ্রাহক

১ মাসে বাড়ল ৩৬ লাখ ইন্টারনেট গ্রাহক

নতুন সেই ২৫ লাখ গ্রাহক যুক্ত হয়ে মোবাইল ইন্টারনেট গ্রাহকের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১১ কোটি ৯ লাখে। বাকিটা ব্রডব্যান্ড ও পিএসটিএন ইন্টারনেট গ্রাহক।

দেশে এক মাসে নতুন করে ৩৬ লাখ ৪০ হাজার ইন্টারনেট গ্রাহক যুক্ত হয়েছে। এতে ইন্টারনেট গ্রাহকের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১২ কোটি ৯ লাখ ৫০ হাজারে।

নতুন যুক্ত হওয়া ৩৬ লাখ গ্রাহকের মধ্যে ২৫ লাখই মোবাইল ইন্টারনেট গ্রাহক।

নতুন সেই ২৫ লাখ গ্রাহক যুক্ত হয়ে মোবাইল ইন্টারনেট গ্রাহকের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১১ কোটি ৯ লাখে। বাকিটা ব্রডব্যান্ড ও পিএসটিএন ইন্টারনেট গ্রাহক।

বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনের (বিটিআরসি) গত জুন মাসের ইন্টারনেট ও মোবাইল গ্রাহকের হিসাব প্রকাশ করেছে।

কমিশনের দেয়া হিসাব থেকে দেখা গেছে, মে মাসে দেশে মোবাইল ইন্টারনেট গ্রাহক ছিল ১০ কোটি ৭৫ লাখ, অর্থাৎ এক মাসে মোবাইল ইন্টারনেট গ্রাহক বেড়েছে ৩৪ লাখ।

চলতি বছর সবচেয়ে বেশি মোবাইল ইন্টারনেট গ্রাহক বাড়ার তালিকায় ছিল মার্চের নাম। সে মাসে ৩১ লাখ ৩৭ হাজার মোবাইল গ্রাহক যুক্ত হয়েছিল মোবাইল অপারেটরদের ঝুলিতে। সেই রেকর্ড ভেঙেছে জুন মাসে।

জুনের হিসাবে দেশে পিএসটিএন ও ব্রডব্যান্ড মিলিয়ে গ্রাহকসংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১ কোটি ৫০ হাজার। মে মাসে এই সংখ্যা ছিল ৯৮ লাখ ১০ হাজার।

সে হিসাবে এক মাসে এই গ্রাহক বেড়েছে দুই লাখের কিছু বেশি।

ইন্টারনেট গ্রাহক বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে দেশে বেড়েছে মোবাইল গ্রাহকের সংখ্যাও।

জুনের হিসাবে দেশে এখন মোবাইল গ্রাহকের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১৭ কোটি ৬৪ লাখ ১০ হাজার।

মে মাসে এই গ্রাহকসংখ্যা ছিল ১৭ কোটি ৫২ লাখ ৭০ হাজার।

৮ কোটি ২০ লাখ ৩০ হাজার গ্রাহক নিয়ে সবার ওপরে আছে গ্রামীণফোন। এর পরেই দ্বিতীয় বৃহত্তম অপারেটর রবি। তাদের গ্রাহকসংখ্যা ৫ কোটি ১৮ লাখ ৪০ হাজার। ৩ কোটি ৬৫ লাখ ৬০ হাজার গ্রাহক নিয়ে তৃতীয় বৃহত্তম অপারেটর বাংলালিংক এবং ৫৯ লাখ ৮০ হাজার গ্রাহক নিয়ে চতুর্থ টেলিটক।

সর্বশেষ ৯০ দিনে কোনো সিমে একবারও যদি ইন্টারনেট ব্যবহার করা হয় তাহলে সেটাকে ইন্টারনেট গ্রাহক ধরা হয়।

মোবাইল গ্রাহকের ক্ষেত্রেও ৯০ দিনে সক্রিয় সিমকে গ্রাহক হিসেবে ধরে কমিশন।

শেয়ার করুন

মন্তব্য

বুয়েটের ইইইতে পড়বেন ৩ বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রথম সিয়াম

বুয়েটের ইইইতে পড়বেন ৩ বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রথম সিয়াম

বগুড়ার সরকারি আজিজুল হক কলেজের ছাত্র মেফতাউল আলম সিয়াম তিনটি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষায় তিন ইউনিট ও বিভাগে প্রথম হন। ছবি: নিউজবাংলা

বুয়েটের ইইইতে ভর্তি কেন হতে চান জানতে চাইলে সিয়াম নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আমি একজন রিসার্চার হতে চাই। ইইইতে রিসার্চের ফিল্ডটা বেশি।’

২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষে বাংলাদেশ প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) স্নাতকের ভর্তি পরীক্ষায় প্রকৌশল এবং নগর ও অঞ্চল পরিকল্পনা (ইউআরপি) বিভাগে প্রথম হয়েছেন বগুড়ার সরকারি আজিজুল হক কলেজের ছাত্র মেফতাউল আলম সিয়াম।

এর আগে তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘ক’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা এবং গাজীপুরের ইসলামিক ইউনিভার্সিটি অফ টেকনোলজির (আইইউটি) ভর্তি পরীক্ষায়ও প্রথম হন।

ঢাকা মেডিক্যাল কলেজের ভর্তি পরীক্ষায় সিয়ামের অবস্থান ছিল ৫৯তম। এ ছাড়া তিন প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের গুচ্ছ পদ্ধতির ভর্তি পরীক্ষায় তৃতীয় হন তিনি।

ধারাবাহিক এ সাফল্যের কারণ, অনুপ্রেরণাসহ প্রাসঙ্গিক বিষয় নিয়ে সিয়ামের সঙ্গে কথা হয় নিউজবাংলার।

নিউজবাংলা: আইইউটি, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘ক’ ইউনিট, বুয়েটের একটি বিভাগে আপনি প্রথম হয়েছেন। এ সাফল্যের মূল কারণ কী বলে মনে করেন?

সিয়াম: এইচএসসি থেকে বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি পরীক্ষার পড়ালেখায় রেগুলার ছিলাম। বেশ কিছু রাইটারের বই ফলো করেছি। এইচএসসি থেকেই বিগত বছরের ভর্তি পরীক্ষায় আসা প্রশ্ন সলভ করার প্র্যাকটিস ছিল, যার কারণে ভর্তি পরীক্ষার পূর্ব সময়ে প্রস্তুতি নিতে অসুবিধা হয়নি।

আগে থেকে বিশ্ববিদ্যালয় লেভেলে ভর্তি পরীক্ষার প্রশ্ন নিয়ে ধারণা ছিল। আমি এইচএসসি ফার্স্ট ইয়ার থেকেই নিয়মিত পড়াশোনা করেছি। নিয়মিত পরিশ্রম করাটা এ ক্ষেত্রে কাজে লেগেছে।

নিউজবাংলা: আপনার সাফল্যের পেছনে সবচেয়ে বেশি অনুপ্রেরণা কার?

সিয়াম: অবশ্যই মায়ের ভূমিকা বেশি। ছোটবেলা থেকে অনুপ্রেরণা জোগাত। সে-ই পাশে ছিল। বাবার ভূমিকাও কম নয়।

আব্বু অবসরপ্রাপ্ত এনজিও কর্মকর্তা। আম্মু গ্র্যাজুয়েশন করা। আম্মু প্রাইমারি পর্যন্ত আমাকে গাইড করেছেন। পরবর্তী সময়ে আমি নিজেই নিজেকে সামলে নিয়েছি।

বুয়েটের ইইইতে পড়বেন ৩ বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রথম সিয়াম

নিউজবাংলা: কোনো পরীক্ষা দেয়ার আগে প্রথম হওয়ার লক্ষ্য ছিল কী?

সিয়াম: পরীক্ষার হলে ও রকম টার্গেট ছিল না। নিজের বেস্ট আউটপুটটা দেয়ার চেষ্টা করছি। হয়তো আশা ছিল ভালো কিছু করব। আমি ফার্স্ট হব, সে রকম কোনো টার্গেট ছিল না।

নিউজবাংলা: আপনার সামনে অনেকগুলো অপশন। কোথায় ভর্তি হবেন?

সিয়াম: বুয়েটের ইইইতে (ইলেকট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেকট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগ)।

নিউজবাংলা: কেন?

সিয়াম: আমি একজন রিসার্চার হতে চাই। ইইইতে রিসার্চের ফিল্ডটা বেশি।

নিউজবাংলা: এসএসসি থেকেই কি এমন স্বপ্ন ছিল?

সিয়াম: এসএসসি পর্যন্ত আমার লক্ষ্য ছিল চিকিৎসক হওয়ার। আমার আম্মুও চেয়েছিলেন আমি চিকিৎসক হই, কিন্তু এইচএসসিতে এসে লক্ষ্য পাল্টে যায় একজন স্যারের কাছ থেকে অনুপ্রাণিত হয়ে। আমি একজন সফল গবেষক হয়ে দেশ ও জাতির প্রতিনিধি হিসেবে কাজ করতে চাই।

নিউজবাংলা: আপনার সাফল্যে বন্ধু-বান্ধব কিংবা বগুড়ার সরকারি আজিজুল হক কলেজের শিক্ষকদের প্রতিক্রিয়া কী?

সিয়াম: কলেজের শিক্ষকগণ অনেক খুশি। বন্ধুরা অনেক খুশি; তাদের ফ্রেন্ড ফার্স্ট হয়েছে। কলেজের অধ্যক্ষ স্যার আমাকে ডেকে নিয়ে ধন্যবাদ জানিয়েছেন।

নিউজবাংলা: অনেকে বলে থাকেন তুখোড় মেধাবীরাও একসময় অতীতের সাফল্য ভুলে স্রোতে গা ভাসান। আপনি এ ব্যাপারে কতটা সতর্ক?

সিয়াম: আমরা যখন এসএসসি বা এইচএসসি লেভেলে পড়ি, তখন মা-বাবার গাইডলাইনে থাকি। বিশ্ববিদ্যালয়ে সে গাইডলাইন থাকে না। ফলে আমাদের ম্যাচিউরিটির অভাবে বা নতুন জীবনযাপনের সম্পর্কে ধারণা না থাকায় এমনটা হয়ে থাকে। অনেকে খাপ-খাইয়ে নিতে পারে না।

আমি মনে করি এ জায়গাগুলো বুঝে চললে কোনো সমস্যা হবে না।

নিউজবাংলা: আপনার জীবনের চূড়ান্ত লক্ষ্য কী?

সিয়াম: একজন গবেষক হয়ে কাজ করা। ভালো কিছু করা, যা দেশের জন্য গর্বের হয়।

নিউজবাংলা: বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তিচ্ছুদের জন্য আপনার কোনো পরামর্শ আছে?

সিয়াম: পড়াশোনায় সবসময় রেগুলার থাকতে হবে। রেগুলার পড়ব। বুঝে পড়ার চেষ্টা করব। পাশাপাশি বিনোদনও থাকবে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে যেন প্রয়োজনের অতিরিক্ত সময় ব্যয় না হয়, সেটা খেয়াল রাখব। পড়াশোনায় যেন কোনো ব্যাঘাত না ঘটে, সেটা সবসময় খেয়াল রাখতে হবে।

নিউজবাংলা: আমাদের সময় দেয়ার জন্য অনেক ধন্যবাদ।

সিয়াম: আপনাকেও ধন্যবাদ।

শেয়ার করুন

বিজিবি সদস্য হত্যা: চেয়ারম্যানকে প্রধান আসামি করে মামলা

বিজিবি সদস্য হত্যা: চেয়ারম্যানকে প্রধান আসামি করে মামলা

নিহত বিজিবি নায়েক রুবেল মণ্ডল। ছবি: নিউজবাংলা

কিশোরগঞ্জ থানার ডিউটি অফিসার উপপরিদর্শক গুলনাহার বেগম জানান, মামলায় অজ্ঞাত অনেককে আসামি হিসেবে রাখা হয়েছে। সোমবার রাতে মামলাটি করা হয়। এতে প্রধান আসামি হিসেবে রয়েছেন গাড়াগ্রাম ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে পরাজিত প্রার্থী ও বর্তমান চেয়ারম্যান মারুফ হোসেন অন্তিককে। তিনি লাঙ্গল প্রতীক নিয়ে নির্বাচনে অংশ নেন।

নীলফামারীর কিশোরগঞ্জে নির্বাচনি সহিংসতায় বিজিবি সদস্য রুবেল মণ্ডল হত্যা মামলায় প্রধান আসামি করা হয়েছে চেয়ারম্যান মারুফ হোসেন অন্তিককে। ওই মামলায় আরও ৯৫ জনকে আসামি করে হয়েছে।

মামলাটি কিশোরগঞ্জ থানায় সোমবার রাত সোয়া ১২টার দিকে করা হয়।

গাড়াগ্রাম ইউনিয়নের পশ্চিম দলিরাম মাঝাপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রিসাইডিং অফিসার ললিত চন্দ্র রায় মামলাটি করেন।

বিষয়টি নিউজবাংলাকে নিশ্চিত করেছেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সারওয়ার আলম।

কিশোরগঞ্জ থানার ডিউটি অফিসার উপপরিদর্শক গুলনাহার বেগম জানান, মামলায় অজ্ঞাত অনেককে আসামি হিসেবে রাখা হয়েছে। সোমবার রাতে মামলাটি করা হয়। এতে প্রধান আসামি হিসেবে রয়েছেন গাড়াগ্রাম ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে পরাজিত প্রার্থী ও বর্তমান চেয়ারম্যান মারুফ হোসেন অন্তিককে। তিনি লাঙ্গল প্রতীক নিয়ে নির্বাচনে অংশ নেন।

এ ছাড়া এ ঘটনায় বিভিন্ন সময় আটজনকে আটক করা হয়। আটকদের মামলায় গ্রেপ্তার দেখিয়ে আদালতে তোলা হয়েছে।

এর আগে ২৮ নভেম্বর ইউপি নির্বাচনে ফল ঘোষণার পর রাত সাড়ে ৯টার দিকে গাড়াগ্রাম ইউনিয়নের ৫ নম্বর ওয়ার্ডের পশ্চিম দলিরাম মাঝাপাড়া ভোট কেন্দ্রে সহিংসতার ঘটনা ঘটে।

যা ঘটেছিল

স্থানীয়রা জানান, গাড়াগ্রাম ইউপিতে রাত সাড়ে ৮টার দিকে জাতীয় পার্টির সাবেক নেতা স্বতন্ত্র প্রার্থী জোনাব আলীকে জয়ী ঘোষণা করা হয়। সেই ফল প্রত্যাখান করেন জাতীয় পার্টির লাঙ্গল প্রতীকের প্রার্থী ও বর্তমান চেয়ারম্যান মারুফ হোসেন অন্তিকের সমর্থকরা। কেন্দ্র থেকে ব্যালটসহ নির্বাচনি সরঞ্জাম নিয়ে উপজেলা সদরে রির্টানিং কর্মকর্তার দপ্তরে যাওয়ার সময় কর্মকর্তাদের ওপর লাটিসোটা নিয়ে হামলা চালান তারা।

তারা আরও জানান, ওই সময় আত্মরক্ষায় বিজিবি সদস্য রুবেল কেন্দ্রের একটি কক্ষে আশ্রয় নিলে বিক্ষুব্ধরা সেখানে তাকে পিটিয়ে হত্যা করে পালিয়ে যান। পুলিশের গাড়ি ও ভোট কেন্দ্রে অগ্নিসংযোগের চেষ্টাও চলান তারা। আত্মরক্ষায় তখন কয়েক রাউন্ড গুলি ছোড়ে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী।

কেন্দ্রের প্রিসাইডিং কর্মকর্তা ললিত চন্দ্র রায় বলেন, ‘ফল ঘোষণার পর লাঙ্গল প্রতীকের প্রার্থী মারুফ হোসেন অন্তিক লোকজন নিয়ে এসে ওই কেন্দ্রে তাকে জয়ী ঘোষণার দাবি জানিয়ে নির্বাচনি সরঞ্জাম নিতে বাধা দেন।

‘ওই সময় আমাদের ওপর আক্রমণ চালাতে শুরু করলে আমি নিজে, একজন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট, কয়েকজন পুলিশ, বিজিবি ও আনসার সদস্য আহত হই। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা পরে আত্মরক্ষার্থে কয়েক রাউন্ড গুলি ছোড়েন।’

শেয়ার করুন

রামপুরায় শিক্ষার্থী নিহতের ঘটনায় হবে একাধিক মামলা

রামপুরায় শিক্ষার্থী নিহতের ঘটনায় হবে একাধিক মামলা

রামপুরায় বাসচাপায় স্কুলছাত্র নিহতের ঘটনায় বিক্ষোভ করছেন বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা। ছবি: সাইফুল ইসলাম

ওসি রফিকুল ইসলাম বলেন, ‘চালককে গতরাতে গুরুতর আহত অবস্থায় আমরা উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠাই। আমার তার সাথে কথা বলার সুযোগ পাইনি, সে অল্প সময়ের মধ্যেই জ্ঞান হারান। তবে ওই সময় তার নাম জানতে চাওয়ায় সে অস্পষ্ট স্বরে জানায় তার নাম সোহেল। এরপর আর কথা বলেনি। প্রাথমিকভাবে তার বয়স জানা গেছে ৩৫ বছর।’

রামপুরায় অনাবিল বাস চাপায় শিক্ষার্থী মঈনুদ্দিন নিহতের ঘটনা ও পরে নাশকতার ঘটনায় একাধিক মামলার প্রস্তুতি নিচ্ছে পুলিশ।

এর মধ্যে সড়ক পরিবহন আইনের ধারায় একটি ও নাশকতার একটি মামলা করার প্রস্তুতি চলছে বলে নিশ্চিত করেছেন রামপুরা থানার ভরপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রফিকুল ইসলাম।

তিনি বলেন, ‘সোমবার রাতে বাসচাপায় ছাত্র নিহতের ঘটনাটি সেখানেই থেমে থাকেনি। এই ঘটনার জেরে পরে বেশ কয়েকটি বাসে আগুন দেয়া ও ভাঙচুরের ঘটনা ঘটেছে। এখানে নাশকতার বিষয়টিও গুরুত্ব সহকারে দেখা হচ্ছে। আমাদের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা এ নিয়ে আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নেবেন।’

কয়টি মামলা হবে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘বাসচাপায় ছাত্র মারা যাওয়ায় সড়ক পরিবহন আইনে একটি মামলা হবে। সেটা ওই ছাত্রের পরিবারের পক্ষ থেকে হতে পারে। এই মামলায় চালক-হেলপার ও তদন্ত সাপেক্ষে মালিককেও আসামি করা হতে পারে।’

নাশকতার ঘটনায় একটি মামলা পুলিশ বাদী হয়ে করবে বলে জানান তিনি।

এই ঘটনায় বাসচালক সোহেল রানা ও হেলপার চাঁন মিয়াকে আটক করা হয়েছে।

বাসচালক গণপিটুনির শিকার হয়ে সংজ্ঞাহীন অবস্থায় ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

বাসের সহকারী চাঁন মিয়াকে সকালে সায়েদাবাদ এলাকা থেকে গ্রেপ্তার করেছে র‍্যাব-৩।

তাদের দুইজন সম্পর্কে জানতে চাইলে রফিকুল ইসলাম বলেন, ‘চালককে গতরাতে গুরুতর আহত অবস্থায় আমরা উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠাই। আমার তার সাথে কথা বলার সুযোগ পাইনি, সে অল্প সময়ের মধ্যেই জ্ঞান হারান। তবে ওই সময় তার নাম জানতে চাওয়ায় সে অস্পষ্ট স্বরে জানায় তার নাম সোহেল। এরপর আর কথা বলেনি। প্রাথমিকভাবে তার বয়স জানা গেছে ৩৫ বছর।’

তিনি আরও বলেন, ‘হেলপার চান মিয়াকে র‍্যাব আটক করেছে বলে আমরা শুনেছি, যাচাই বাছাই করে সত্যতা পাওয়া গেলে তাকে আমরা গ্রেপ্তার দেখাব।’

শেয়ার করুন

নির্বাচনি সহিংসতা: গুলিবিদ্ধ যুবলীগ কর্মীর মৃত্যু

নির্বাচনি সহিংসতা: গুলিবিদ্ধ যুবলীগ কর্মীর মৃত্যু

চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যু হয় গুলিবিদ্ধ যুবলীগ কর্মী দেলোয়ার হোসেন দিলুর। ছবি: নিউজবাংলা

স্থানীয়রা জানান, ২৮ নভেম্বরের ভোটে দক্ষিণ গোবরিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে আওয়ামী লীগের প্রার্থীর সমর্থকদের সঙ্গে বিদ্রোহী প্রার্থীর সমর্থকদের সংঘর্ষ হয়। পুলিশ প্রথমে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনার চেষ্টা করে ব্যর্থ হয়। একপর্যায়ে গুলি ছুড়লে দেলোয়ারের মাথায় এসে লাগে।

কিশোরগঞ্জের কুলিয়ারচরে ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনকেন্দ্রিক সহিংসতায় গুলিবিদ্ধ যুবলীগ কর্মীর চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যু হয়েছে।

রাজধানীর হেলথ কেয়ার হাসপাতালে সোমবার রাত সাড়ে ১১টার দিকে দেলোয়ার হোসেন দিলুর মৃত্যু হয়।

৩৫ বছর বয়সী দিলুর বাড়ি কুলিয়ারচর উপজেলার ১ নম্বর গোবরিয়া আব্দুল্লাহপুর ইউনিয়নের পশ্চিম গোবরিয়া গ্রামে। তিনি গোবরিয়া আব্দুল্লাহপুর ইউপি নির্বাচনে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী মো. সাইফুলের কর্মী ছিলেন।

এই ইউনিয়নের নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান এনামুল হক আবু বক্কর নিউজবাংলাকে মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

স্থানীয়রা জানান, ২৮ নভেম্বরের ভোটে দক্ষিণ গোবরিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে আওয়ামী লীগের প্রার্থীর সমর্থকদের সঙ্গে বিদ্রোহী প্রার্থীর সমর্থকদের সংঘর্ষ হয়। পুলিশ প্রথমে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনার চেষ্টা করে ব্যর্থ হয়। একপর্যায়ে গুলি ছুড়লে দেলোয়ারের মাথায় এসে লাগে।

পরে তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় ভর্তি করা হয়। সেখানেই চিকিৎসাধীন অবস্থায় দেলোয়ারের মৃত্যু হয়।

এ বিষয়ে কথা বলার জন্য কুলিয়ারচর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) গোলাম মোস্তফাকে কল দেয়া হলে তিনি ধরেননি।

শেয়ার করুন

প্রিসাইডিং অফিসার ও এসআইয়ের ওপর হামলার ঘটনায় মামলা

প্রিসাইডিং অফিসার ও এসআইয়ের ওপর হামলার ঘটনায় মামলা

হামলায় আহত হন প্রিসাইডিং অফিসার গোলাম সারোয়ার ভূঁইয়া। ছবি: নিউজবাংলা

বরুড়া থানার ওসি ইকবাল বাহার জানান, আসামিদের গ্রেপ্তারের অভিযান অব্যাহত আছে। তদন্তের স্বার্থে কতজনকে আসামি করে মামলা করা হয়েছে এবং কে মামলা করেছেন তা বলা যাচ্ছে না।

কুমিল্লার বরুড়ায় প্রিসাইডিং অফিসার ও পুলিশকে আহতের ঘটনায় মামলা হয়েছে।

সোমবার দুপুরে বরুড়া থানায় মামলাটি করেন ওই কেন্দ্রের এক সহকারী প্রিসাইডিং অফিসার।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বরুড়া থানার ওসি ইকবাল বাহার। তবে এ ঘটনায় এ পর্যন্ত কাউকে আটক করা সম্ভব হয়নি বলেও জানান তিনি।

তিনি জানান, আসামিদের গ্রেপ্তারের অভিযান অব্যাহত আছে। তদন্তের স্বার্থে কতজনকে আসামি করে মামলা করা হয়েছে এবং কে মামলা করেছেন তা বলা যাচ্ছে না।

হামলায় আহত হন প্রিসাইডিং অফিসার গোলাম সারোয়ার ভূঁইয়া ও এসআই আবু হানিফ।

এদিকে প্রিসাইডিং অফিসারের পকেট থেকে ৪৪ হাজার টাকা ছিনতাইকারীরা নিয়ে যায়। এতে ভাতা বঞ্চিত হন কেন্দ্রে দায়িত্ব থাকা ১৯ কর্মকর্তা-কর্মচারী। স্থানীয়রা জানান, তালা প্রতীকের মেম্বার প্রার্থী মোখলেছুর রহমানের নেতৃত্বে এই হামলা হয়।

স্থানীয় পোলিং অফিসার ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, বরুড়ার ঝলম ইউনিয়নের ডেউয়াতলী কেন্দ্রে নির্বাচনের আগের দিন শনিবার রাতে ব্যাপক ককটেল বিস্ফোরণ ঘটিয়ে আতঙ্কের সৃষ্টি করা হয়।

নির্বাচনের দিন রোববার সকাল ৮টা থেকে ৬টি বুথে ভোট গ্রহণ শুরু হয়। সকাল ৯টার দিকে তালা প্রতীকের মেম্বার প্রার্থী মোখলেছুর রহমান প্রিসাইডিং অফিসার গোলাম সারোয়ার ভূঁইয়ার কাছে ব্যালট বই নেয়ার দাবি করেন।

প্রিসাইডিং অফিসার তাকে ব্যালট বই দিতে রাজি না হলে প্রায় দুই ঘণ্টা পর ভোট কেন্দ্রের বাইরে ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। মোখলেছুরের নেতৃত্বে হামলাকারীরা ককটেল বিস্ফোরণ ঘটাতে ঘটাতে কেন্দ্রে ঢুকে পড়ে। আত্মরক্ষার্থে প্রিসাইডিং অফিসার কক্ষের দরজা বন্ধ করে দেন।

এ সময় হামলাকারীরা দরজা ভেঙে ফেলে। হামলাকারীরা প্রিসাইডিং অফিসারকে ছুরিকাঘাতের চেষ্টা করলে বাধা দেন আবু হানিফ।

এতে লাঠি ও রামদা দিয়ে আঘাত করে তাকে মাটিতে ফেলে দেয় ছয়-সাতজনের একটি দল। মাটিতে ফেলে তার কোমরে ছুরি ও রামদা দিয়ে কোপানো হয়। তার পিস্তল ছিনতাই করা হয়। পরে সেটি উদ্ধার করা হয়।

এ বিষয়ে অভিযুক্ত প্রার্থী মোখলেছুর রহমান বলেন, ‘আমি একজন প্রতিবন্ধী ও নিরীহ প্রকৃতির মানুষ। প্রতিপক্ষের লোকজন আমার বিরুদ্ধে মিথ্যে অপপ্রচার করছে। আমি এ ঘটনার সময় ভয়ে পালিয়ে যাই। হামলা করতে যাব কেন?’

এ বিষয়ে কুমিল্লার জেলা প্রশাসক কামরুল হাসান বলেন, ‘এটা একটি বিচ্ছিন্ন ঘটনা। এ ঘটনায় মামলা হয়েছে। হামলাকরীরা কেউ রেহাই পাবে না।’

শেয়ার করুন

ওমিক্রন নিয়ে আন্তমন্ত্রণালয় বৈঠকে স্বাস্থ্যমন্ত্রী

ওমিক্রন নিয়ে আন্তমন্ত্রণালয় বৈঠকে স্বাস্থ্যমন্ত্রী

আফ্রিকান ভ্যারিয়েন্ট ওমিক্রন ঠেকাতে সচিবালয়ে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে বেলা সাড়ে ১১টায় আন্তমন্ত্রণালয় বৈঠক শুরু হয়েছে। বৈঠক শেষে সিদ্ধান্ত জানাবেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক।

করোনার নতুন ধরন ওমিক্রন ঠেকাতে করণীয় ঠিক করতে আন্তমন্ত্রণালয় বৈঠকে বসেছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক।

সচিবালয়ে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে বেলা সাড়ে ১১টায় এ বৈঠক শুরু হয়।

সভা শেষে সরকারের পদক্ষেপ তুলে ধরবেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক।

আফ্রিকার দেশ বতসোয়ানায় প্রথম করোনার নতুন ধরন ওমিক্রন শনাক্ত হয়। খুব দ্রুত ছড়িয়ে পড়া এ ধরনটি নিয়ে এরই মধ্যে বিভিন্ন দেশ সাউথ আফ্রিকাসহ আফ্রিকার দেশগুলোর ওপর ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা দেয়।

বাংলাদেশও সাউথ আফ্রিকার সঙ্গে যোগাযোগ বন্ধ করার কথা জানায়।

আফ্রিকান ভ্যারিয়েন্ট ওমিক্রন আগের ডেল্টার চেয়ে অধিক সংক্রামক বলে বিজ্ঞানীরা দাবি করেছেন। এর বিস্তার রোধে রোববার সামাজিক, রাজনৈতিকসহ সব ধরনের জনসমাগম নিরুৎসাহিত করতে সরকার ১৫ দফা নির্দেশনা দিয়েছে।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের পরিচালক (ডিজিজ কন্ট্রোল) প্রফেসর ডা. নাজমুল ইসলামের সই করা এক নোটিশে এসব নির্দেশনা দেয়া হয়।

তার আগে শনিবার স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক ওমিক্রন নিয়ে সিদ্ধান্ত নিতে সরকারি সফর বাতিল করে মাঝপথ থেকে ঢাকায় ফেরেন।

শেয়ার করুন

বাসে বুধবার থেকে শিক্ষার্থীদের ভাড়া অর্ধেক

বাসে বুধবার থেকে শিক্ষার্থীদের ভাড়া অর্ধেক

বাসে অর্ধেক ভাড়ার দাবি জানিয়ে আন্দোলন চালিয়ে আসছিলেন শিক্ষার্থীরা। ফাইল ছবি/নিউজবাংলা

মালিক সমিতি থেকে জানানো হয়েছে, ১ ডিসেম্বর থেকে হাফ ভাড়া কার্যকর হবে। হাফ ভাড়ার জন্য শিক্ষার্থীদের ছবিসহ আইডি কার্ড দেখাতে হবে। তবে ছুটির দিনগুলোতে হাফ ভাড়া কার্যকর করা হবে না।

শিক্ষার্থীদের হাফ ভাড়ার দাবি মেনে নিয়েছে বাস মালিক সমিতি। তবে তারা বলেছে, এ সিদ্ধান্ত কেবল কার্যকর হবে ঢাকা মহানগর এলাকায়।

ঢাকা সড়ক পরিবহন মালিক সমিতি মহাসচিব খন্দকার এনায়েত উল্যাহ মঙ্গলবার এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান।

বাস মালিক সমিতির এই সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, ১ ডিসেম্বর থেকে হাফ ভাড়া কার্যকর হবে। হাফ ভাড়া দেয়ার সময় আইডি কার্ড দেখাতে হবে। ছুটির দিনে হাফ ভাড়া কার্যকর হবে না। হাফ ভাড়া শুধু ঢাকায় সীমাবদ্ধ অন্যান্য জেলার জন্য নয়।

আরও বলা হয়, সকাল ৭ টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত হাফ ভাড়া দিতে পারবেন শিক্ষার্থীরা। এই সময়ের পর বাসে উঠলে পুরো ভাড়া দিতে হবে।

সম্প্রতি জ্বালানি তেলের দাম বাড়ানোর পর পরই বাড়ে বাস ভাড়াও। বাসের মালিকরা তুলে দেয়, শিক্ষার্থীদের হাফ পাস।

এরপর থেকেই বাসে হাফ ভাড়ার দাবিতে আন্দোলন করে আসছিল শিক্ষার্থীরা। এর মধ্যে ঢাকা সিটি করপোরেশনের একটি ময়লার গাড়ির ধাক্কায় নটর ডেম কলেজের এক শিক্ষার্থীর নিহতের পর এ দাবি আরও জোরাল হয়।

এর মধ্যে সোমবার রাতে রাজধানীর রামপুরায় অনাবিল পরিবহনের চাপায় নিহত হন এসএসসি পরীক্ষা দেয়া এক শিক্ষার্থী। এই ঘটনায় রাতেই আটটি বাসে আগুন এবং চারটি বাস ভাঙচুর করা হয়।

বাসে বুধবার থেকে শিক্ষার্থীদের ভাড়া অর্ধেক

যা বলল মালিক সমিতি

ঢাকা সড়ক পরিবহন মালিক সমিতির সংবাদ সম্মেলনে খন্দকার এনায়েত উল্যাহ বলেন, ‘গতকালকে (সোমবার) রাত্রের ঘটনায় মাঈনুদ্দিন দুর্জয় নামের আমাদের যে ছাত্রটা মারা গেলেন, দুর্ঘটনার শিকার হয়ে মারা গেলেন, তার জন্য আন্তরিকভাবে আমরা দুঃখ প্রকাশ করতেছি।

‘তার পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানাচ্ছি। আল্লাহ যেন তাকে বেহেশত নসিব করে এবং এই ঘটনায় যারা জড়িত, প্রকৃতি দোষী যারা তাদেরকে তদন্ত সাপেক্ষে যেন সর্বোচ্চ শাস্তি দেয়া হয়, সেটা আমরা আমাদের সংগঠন থেকে বলতে চাই।’

হাফ বাস ভাড়া কার্যকর নিয়ে তিনি বলেন, ‘আজকে বাস ভাড়ার ছাত্রদের যে দাবি ছিল, অর্ধেক বাস ভাড়া নেয়ার ব্যাপারে দীর্ঘদিন যাবত যে আন্দোলন ছিল, সে আন্দোলনের ব্যাপারে, সে দাবির ব্যাপারে আজকে আমাদের পক্ষ থেকে আমরা সুস্পষ্ট ঘোষণা দেবো। আপনারা জানেন এই বিষয়টি নিয়ে কিন্তু আমরা বসে নাই।

‘ছাত্রদের যে দাবি ছিল, সেটাকে কী করা যায়, সে নিয়ে আমরা দফায় দফায় গত কয়েক দিন যাবত আমরা সভা করেছি। বিআরটিএর সঙ্গেও আমরা দুইটা সভায় মিলিত হয়েছি এবং আমাদের শ্রমিক-মালিকদের নিয়ে আমরা দফায় দফায় সভা করেছি।’

সোমবারের সভা নিয়ে এনায়েত বলেন, ‘সর্বশেষ গতকালকে ২৯ নভেম্বর আমরা ঢাকার ১২০টি পরিবহন কোম্পানির এমডি-চেয়ারম্যান এবং ঢাকাস্থ পাঁচটি শ্রমিক ইউনিয়ন, তাদের প্রেসিডেন্ট-সেক্রেটারি এবং ফেডারেশনের সেক্রেটারিসহ আমরা গতকালকে এ কক্ষে দীর্ঘক্ষণ যাবত আমরা সভা করেছি।

‘সবদিক আলাপ-আলোচনা করে আমরা স্থির করেছি, ছাত্রদের যে দাবি, সেই দাবির প্রতি আমরা সমর্থন জানিয়ে সেই দাবি কার্যকর করার জন্য। আগামীকালকে থেকে, ১ ডিসেম্বর থেকে ছাত্রদের বাসে হাফ ভাড়া কার্যকর করা হবে।’

বাস মালিক সমিতির এই নেতা বলেন, ‘সে জন্য সকল পরিবহন মালিকদের প্রতি এবং শ্রমিকদের প্রতি আমাদের অনুরোধ থাকবে, ছাত্ররা যেন হাফ ভাড়ায় যাতায়াত করতে পারে, সে ব্যাপারটি নিশ্চিত করার জন্য।’

হাফ ভাড়ায় শর্ত

সংবাদ সম্মেলনে হাফ ভাড়া কার্যকরের ক্ষেত্রে শর্ত তুলে ধরেন পরিবহন মালিক সমিতির নেতা এনায়েত উল্যাহ।

তিনি বলেন, ‘এ বিষয়ে কয়েকটি ব্যাপার, কিছু কিছু ঘটনা এ বিষয়ে, যেটা মানা প্রয়োজন এবং আমাদের মিটিংয়েও আমরা যেটা নিয়ে আলোচনা করেছি, সেটা হলো হাফ ভাড়া প্রদানের সময় স্ব স্ব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ছবিযুক্ত আইডি কার্ড প্রদর্শন করতে হবে।’

তিনি বলেন, ‘সেকেন্ড, সকাল ৭টা থেকে সন্ধ্যা ৮টা পর্যন্ত হাফ ভাড়া কার্যকর থাকবে। তার পরে সরকারি ছুটির দিন, সাপ্তাহিক ছুটির দিন এবং শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের মৌসুমি ছুটিসহ অন্যান্য ছুটির সময় ছাত্রদের হাফ ভাড়া কার্যকর হবে না।

‘দ্যাট মিনস, ছুটির সময়, যখন স্কুল-কলেজ-ইউনিভার্সিটি ছুটি থাকবে, গর্ভমেন্টে যে ছুটিগুলো থাকবে, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে যে ছুটিগুলো থাকে, সাপ্তাহিক শুক্রবার ছুটি থাকে, এই ছুটির দিনে হাফ ভাড়া কার্যকর হবে না এবং এই সিদ্ধান্ত শুধুমাত্র ঢাকা শহরের জন্য।’ ‘ঢাকার বাহিরে কোনোভাবে এই সিদ্ধান্ত কার্যকর নয়। ছাত্রদের হাফ ভাড়ার বিষয়টা ‍শুধু ঢাকার মধ্যে সিদ্ধান্ত’, যোগ করেন এনায়েত।

সংবাদকর্মী প্রতি আহ্বান, শিক্ষার্থীদের প্রতি অনুরোধ

সংবাদকর্মীদের উদ্দেশে সড়ক পরিবহন মালিক সমিতির মহাসচিব বলেন, ‘আমি মনে করি, আজকে হাফ ভাড়ার ব্যাপারে আমরা দীর্ঘদিন আলাপ-আলোচনা করে, বিভিন্ন সভা করে, মালিকদের সঙ্গে আলোচনা করে, শ্রমিকদের সঙ্গে আলোচনা করে আমরা এই সিদ্ধান্তে উপনীত হলাম, যেটা আপনাদের মাধ্যমে দেশবাসীকে আমরা জানাতে চাই। আমরা হাফ ভাড়া কার্যকর ছাত্রদের জন্য করে দিলাম।’

শিক্ষার্থীদের উদ্দেশে তিনি বলেন, ‘ছাত্রদের প্রতি আমাদের অনুরোধ থাকবে, এরা আমাদেরই সন্তান; কোমলমতি ছাত্ররা আমাদেরই সন্তান। তারা যেন এখন থেকে তাদের পড়ালেখায় মনোযোগ দেয়। তারা যেন স্কুল-ভার্সিটিতে ফেরত যায়। রাস্তায় এইসব আন্দোলন না করে তারা যেন ফেরত যায়, এটা তাদের প্রতি আমাদের আহ্বান থাকবে। ধন্যবাদ আপনাদেরকে।’

শেয়ার করুন