× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

প্রযুক্তি
কথা বললেই স্মার্টফোনে লেখা হবে ইমেইল
hear-news
player
print-icon

কথা বললেই স্মার্টফোনে লেখা হবে ইমেইল

কথা-বললেই-স্মার্টফোনে-লেখা-হবে-ইমেইল
ভয়েস কমান্ডে স্মার্টফোনে ইমেইল লেখার সুবিধা দেবে মাইক্রোসফট। ছবি: সংগৃহীত
মাইক্রোসফট মঙ্গলবার এক বিবৃতিতে জানায়, এখন সপ্তাহে ভার্চুয়াল মিটিং বেড়েছে অন্তত ১৪৮ শতাংশ। প্রতিটি মিটিং শিডিউলের সময় গড়ে ২৯ মিনিট।

প্রযুক্তি জায়ান্ট মাইক্রোসফট তাদের আউটলুক মোবাইল অ্যাপে কর্টানা ভয়েস সাপোর্ট নিয়ে আসার ঘোষণা দিয়েছে। এই সাপোর্ট আনা হলে ব্যবহারকারীরা স্মার্টফোনে ভয়েস কমান্ডের সাহায্যে ইমেইল লেখা, মিটিং শিডিউল করা কিংবা সার্চের মতো কাজ করতে পারবেন।

আউটলুকে এটি আগে আসবে আইওএস প্ল্যাটফর্মে, যেখানে একটি নতুন ভয়েস আইকন দেখা যাওয়ার পর সেটি চালু হবে।

এরপর ব্যবহারকারীরা কোনো ম্যাসেজের উত্তর দিতে তাদের ভয়েস ব্যবহার করতে পারবেন এবং নতুন ইমেইল লিখতে পারবেন।

মাইক্রোসফট মঙ্গলবার এক বিবৃতিতে জানায়, এখন সপ্তাহে ভার্চুয়াল মিটিং বেড়েছে অন্তত ১৪৮ শতাংশ। প্রতিটি মিটিং শিডিউলের সময় গড়ে ২৯ মিনিট।

খালিজ টাইমসের এক প্রতিবেদনে বলা হয়, অনলাইন মিটিং আরও সহজ করতে নতুন এই আপডেট এনেছে প্রতিষ্ঠানটি, ফিচারটি যুক্ত হচ্ছে মাইক্রোসফট ৩৬৫ সেবায়।

মাইক্রোসফট বলছে, সাধারণভাবে আপনি যেভাবে অন্য কাউকে মিটিং শিডিউলের কথা বলেন, তেমনকি করে কর্টানাকে বললে শিডিউলার তেমন করেই বিস্তারিত দিয়ে মিটিং সেট করবে।

এমনকি আপনার কাছ কর্টানা বিস্তারিত জানতে ও বিষয়টি ক্লিয়ার করতে প্রশ্নও জিজ্ঞাসা করতে পারে। তখন বিস্তারিত জানিয়ে কর্টানাকে কমান্ড দেয়া যাবে।

শিডিউলার হলো মাইক্রোসফটের প্রথম কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার মানব সহকারী যা মাইক্রোসফট ৩৬৫ সেবাকে নির্দিষ্ট কোনো শব্দ যেমন, হেই গুগল, হেই সিরি বা হ্যালো অ্যালেক্সর মতো শব্দ ছাড়াই কাজ করার অনুমতি দেয়।

প্রতিষ্ঠানটি বলছে, শিডিউলারের মাধ্যমে কর্টানা বেশ কিছু তথ্য নেবে, যা একটি মিটিং সেট করার সময় প্রয়োজন হয়। এসব তথ্যের মধ্যে রয়েছে নাম, যার সঙ্গে মিটিং সেট হবে তার নাম, ফ্রি নাকি ব্যস্ত কিংবা সচরাচর কখন পাওয়া যাবে এমন সব তথ্য।

মন্তব্য

আরও পড়ুন

প্রযুক্তি
All the achievements of Sheikh Hasina

শেখ হাসিনার যত অর্জন

শেখ হাসিনার যত অর্জন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ছবি: সংগৃহীত
আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার ৭৬তম জন্মদিন আজ বুধবার। দীর্ঘ রাজনৈতিক পথচলায় তার অর্জনের তালিকা দীর্ঘ। সেসব অর্জনের সূত্র ধরেই বঙ্গবন্ধু-কন্যা ভূষিত হয়েছেন ‘জননেত্রী’, ‘গণতন্ত্রের মানসকন্যা’, ‘দেশরত্ন’, ‘রাষ্ট্রনায়ক’ প্রভৃতি উপাধিতে।

গণতন্ত্র ও দেশের মানুষের ভোট-ভাতের অধিকার প্রতিষ্ঠার আন্দোলন-সংগ্রামে অসামান্য অবদান রাখার পাশাপাশি রাষ্ট্র পরিচালনায়ও ব্যাপক সাফল্যের পরিচয় দিয়ে চলেছেন বঙ্গবন্ধুর জ্যেষ্ঠ কন্যা শেখ হাসিনা। নিজের অর্জনেই তিনি ইতিহাসে জায়গা করে নিয়েছেন।

আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার ৭৬তম জন্মদিন আজ বুধবার। দীর্ঘ রাজনৈতিক পথচলায় তিনি ‘জননেত্রী’, ‘গণতন্ত্রের মানসকন্যা’, ‘দেশরত্ন’, ‘রাষ্ট্রনায়ক’ প্রভৃতি উপাধিতে ভূষিত হয়েছেন।

আওয়ামী লীগের টানা তিন মেয়াদের ক্ষমতায় প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্বে থেকে তার অর্জনের তালিকাটা এককথায় বিশাল। তার শাসনামলেই চূড়ান্ত নিষ্পত্তি হয়েছে বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলার। শেষ হয়েছে একাত্তরের ঘাতক যুদ্ধাপরাধীদের বিচার।

সংবিধান সংশোধনের মধ্য দিয়ে মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনা পুনঃপ্রতিষ্ঠা, ভারত ও মিয়ানমারের সঙ্গে সমুদ্রসীমা বিরোধ নিষ্পত্তি ও সমুদ্রবক্ষে বাংলাদেশের সার্বভৌমত্ব প্রতিষ্ঠার মধ্য দিয়ে ব্লু ইকনোমির নতুন দিগন্ত উন্মোচন, ভারতের সঙ্গে সীমান্ত চুক্তি বাস্তবায়ন ও ছিটমহল বিনিময়, বঙ্গবন্ধু-১ স্যাটেলাইট সফল উৎক্ষেপণের মধ্য দিয়ে মহাকাশ জয়, সাবমেরিন যুগে বাংলাদেশের প্রবেশের মতো বড় বড় অর্জন এসেছে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে।

শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আরও অনেক অর্জনের মধ্যে রয়েছে- নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মা সেতু নির্মাণ, মেট্রোরেল, পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র স্থাপন, কর্ণফুলী টানেল, এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে, নতুন নতুন উড়াল সেতু, মহাসড়কগুলো ফোর লেনে উন্নীত করা, এলএনজি টার্মিনাল স্থাপন, খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জন ও মাথাপিছু আয় ২ হাজার ৮২৪ ডলারে উন্নীতকরণ।

আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্বে থেকে শেখ হাসিনা জাতির জন্য আরও যেসব অর্জন নিয়ে এসেছেন তার মধ্যে রয়েছে- দেশে দারিদ্র্যের হার হ্রাস, গড় আয়ু প্রায় ৭৪ বছর ৪ মাসে উন্নীত হওয়া, যুগোপযোগী শিক্ষানীতি প্রণয়ন, সাক্ষরতার হার ৭৫ দশমিক ৬০ শতাংশে উন্নীত করা, বছরের প্রথম দিনে প্রাথমিক থেকে মাধ্যমিক স্তর পর্যন্ত সব শিক্ষার্থীর হাতে বিনামূল্যে নতুন বই তুলে দেয়া, মাদ্রাসা শিক্ষাকে মূলধারার শিক্ষার সঙ্গে সম্পৃক্ত করা ও স্বীকৃতি দান, মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপন, প্রতিটি জেলায় একটি করে সরকারি/বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপনের উদ্যোগ, নারী নীতি প্রণয়ন, ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণ ও ফাইভ-জি মোবাইল প্রযুক্তি চালু।

শেখ হাসিনা ১৯৯৬-০১ মেয়াদে প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব পালনকালে পার্বত্য চট্টগ্রাম শান্তিচুক্তি ও ভারতের সঙ্গে গঙ্গার পানিবণ্টন চুক্তি তার সরকারের অন্যতম সাফল্য হিসেবে বিবেচিত হয়েছে। বিশ্বসভায় আত্মমর্যাদাশীল জাতি হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে বাঙালি।

গণতন্ত্র, শান্তি ও মানুষের অধিকার প্রতিষ্ঠা এবং নারী শিক্ষার বিস্তার, শিশুমৃত্যুর হার হ্রাস ও দারিদ্র্য বিমোচনের সংগ্রামে অসামান্য ভূমিকার স্বীকৃতি হিসেবে দেশি-বিদেশি বেশ কিছু পুরস্কার ও সম্মানে ভূষিত হয়েছেন শেখ হাসিনা।

সেসবের মধ্যে সাউথ-সাউথ ভিশনারি পুরস্কার-২০১৪, শান্তি বৃক্ষ-২০১৪, জাতিসংঘ পুরস্কার-২০১৩ ও ২০১০, রোটারি শান্তি পুরস্কার-২০১৩, গোভি পুরস্কার-২০১২, সাউথ-সাউথ পুরস্কার-২০১১, ইন্দিরা গান্ধী শান্তি পুরস্কার-২০১০, পার্ল এস. বার্ক পুরস্কার-২০০০, সিইআরইএস মেডাল-১৯৯৯, এম কে গান্ধী পুরস্কার-১৯৯৮, মাদার তেরেসা শান্তি পুরস্কার-১৯৯৮, ইউনেস্কোর ফেলিক্স হোফুয়েট-বোয়েগনি শান্তি পুরস্কার-১৯৯৮ উল্লেখযোগ্য।

এছাড়া পরিবেশ সংরক্ষণে অসামান্য অবদানের জন্য এ বছর জাতিসংঘের পরিবেশ বিষয়ক সর্বোচ্চ মর্যাদাপূর্ণ পুরস্কার ‘চ্যাম্পিয়নস অব দ্য আর্থ’-এ ভূষিত হয়েছেন শেখ হাসিনা।

আরও পড়ুন:
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৭৬তম জন্মদিন
শেখ হাসিনার জন্মদিন উপলক্ষে কাব্য সংকলন প্রকাশ
গণতন্ত্রের ধারাবাহিকতায় নির্বাচনের বিকল্প নেই: ডেপুটি স্পিকার

মন্তব্য

প্রযুক্তি
Alokavartikas 76th birthday today

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৭৬তম জন্মদিন

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৭৬তম জন্মদিন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ছবি: সংগৃহীত
১৯৪৭ সালে সবে ব্রিটিশ শাসন থেকে মুক্ত হয়েছে উপমহাদেশ। সদ্য স্বাধীনতা পাওয়া রাষ্ট্র পাকিস্তানের পূর্ব অংশের গোপালগঞ্জে ২৮ সেপ্টেম্বর জন্ম নিল এক মেয়ে শিশু। নাম রাখা হলো শেখ হাসিনা। আনন্দ, সংগ্রাম, বেদনার নানা ঘটনাপ্রবাহের পর বাংলাদেশের সবচেয়ে বেশি মেয়াদের প্রধানমন্ত্রী তিনি। ৭৬তম জন্মদিনে এসে বাংলাদেশের রাজনীতির নিয়ন্ত্রকের ভূমিকায় এই বঙ্গবন্ধু-কন্যা।

প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার ৭৬তম জন্মদিন আজ বুধবার। ১৯৪৭ সালের ২৮ সেপ্টেম্বর গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় জন্ম হয় তার। তিনি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিবের প্রথম সন্তান।

১৯৭৫ সালের পটপরিবর্তনের পর ১৯৮১ সালে দেশে ফিরে আওয়ামী লীগের দুঃসময়ে দলীয় প্রধানের দায়িত্ব নেন বঙ্গবন্ধু-কন্যা। এরপর থেকে ৩৪ বছর ধরে নিজ রাজনৈতিক প্রজ্ঞা ও আপসহীন নেতৃত্বের মাধ্যমে দেশের অসাম্প্রদায়িক-গণতান্ত্রিক রাজনীতির মূল স্রোতধারার প্রধান নেতা হিসেবে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করেছেন তিনি। পর পর তিনবার সরকারের প্রধান হিসেবে আলোকবর্তিকা হয়ে দেশকে নিয়ে যাচ্ছেন সমৃদ্ধির দিকে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে গ্রাজুয়েট ডিগ্রি লাভকারী শেখ হাসিনা তৎকালীন ছাত্রলীগের অন্যতম নেত্রী ছিলেন। আশির দশকের রাজনীতির মূলধারায় আসার পর তার নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ এবং অন্য রাজনৈতিক জোট ও দলগুলো ১৯৯০ সালে স্বৈরাচারবিরোধী গণআন্দোলনের মাধ্যমে গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার করে। ১৯৯৬ সালে তার নেতৃত্বেই ক্ষমতায় আসে আওয়ামী লীগ।

বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের সময় প্রধান বিরোধী দলের নেতা হিসেবে তার নেতৃত্বে অসাম্প্রদায়িক-গণতান্ত্রিক রাজনৈতিক দলগুলোর সমন্বয়ে প্রথমে ১৪ দলীয় জোট এবং পরে মহাজোট গড়ে ওঠে। ১৪ দল ও মহাজোটের তীব্র আন্দোলনের মুখে অধ্যাপক ড. ইয়াজউদ্দিন আহম্মেদের নেতৃত্বাধীন তত্ত্বাবধায়ক সরকারের ২২ জানুয়ারির একতরফা নির্বাচনের প্রচেষ্টা ব্যর্থ হয়।

শেখ হাসিনার শিক্ষাজীবন শুরু হয় টুঙ্গিপাড়ার এক পাঠশালায়। ১৯৫৪ সালের নির্বাচনে শেখ মুজিবুর রহমান প্রাদেশিক পরিষদের সদস্য (এমপিএ) নির্বাচিত হওয়ার পর তিনি পরিবারকে ঢাকায় নিয়ে আসনে। পুরান ঢাকার মোগলটুলির রজনী বোস লেনে বসবাস শুরু করেন তারা। পরে যুক্তফ্রন্ট মন্ত্রিসভার সদস্য নির্বাচিত হলে আবাস স্থানান্তরিত হয় ৩ নম্বর মিন্টো রোডের সরকারি বাসভবনে। ১৯৫৬ সালে শেখ হাসিনা ভর্তি হন টিকাটুলির নারীশিক্ষা মন্দির বালিকা বিদ্যালয়ে। বঙ্গবন্ধু ধানমন্ডির ঐতিহাসিক ৩২ নম্বর রোডের বাড়িতে বসবাস শুরু করেন ১৯৬১ সালের ১ অক্টোবর।

শেখ হাসিনা ১৯৬৫ সালে আজিমপুর বালিকা বিদ্যালয় থেকে মাধ্যমিক পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হন। ১৯৬৭ সালে উচ্চ মাধ্যমিক পাস করেন ঢাকার বকশী বাজারের ইন্টারমিডিয়েট গভর্নমেন্ট গার্লস কলেজ (বর্তমানে বদরুন্নেসা সরকারি মহিলা মহাবিদ্যালয়) থেকে। কলেজে অধ্যয়নকালে তিনি কলেজ ছাত্র সংসদের সহ-সভাপতি (ভিপি) পদে নির্বাচিত হন। একই বছর ভর্তি হন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে।

স্কুল, কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয় জীবনে ছাত্রলীগের নেত্রী হিসেবে আইয়ুব-বিরোধী আন্দোলন এবং ৬ দফা আন্দোলনে সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণ করেন শেখ হাসিনা। ১৯৬৭ সালের ১৭ নভেম্বর পরমাণু বিজ্ঞানী ড. এম. এ ওয়াজেদ মিয়ার সঙ্গে শেখ হাসিনা বিয়েবন্ধনে আবদ্ধ হন। এই দম্পতি এক পুত্র ও এক কন্যা (সজীব ওয়াজেদ জয় ও সায়মা ওয়াজেদ পুতুল) সন্তানের গর্বিত বাবা-মা।

১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট কালরাতে ঘাতকের নির্মম বুলেটে সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সপরিবারে নিহত হন। এ সময় বিদেশে থাকায় প্রাণে বেঁচে যান বঙ্গবন্ধু-কন্যা শেখ হাসিনা ও শেখ রেহানা। শুরু হয় তাদের প্রবাস জীবন।

১৯৮১ সালের ১৪, ১৫ ও ১৬ ফেব্রুয়ারি ঢাকার ইডেন হোটেলে অনুষ্ঠিত হয় আওয়ামী লীগের ঐতিহাসিক কাউন্সিল অধিবেশন। এই কাউন্সিলের মধ্য দিয়ে জাতির এক ক্রান্তিলগ্নে শেখ হাসিনার অনুপস্থিতিতে তাকে সংগঠনের সভাপতি নির্বাচিত করা হয়। ডাক আসে দেশমাতৃকার হাল ধরার। সামরিক শাসকদের রক্তচক্ষু ও নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে ১৯৮১ সালের ১৭ মে স্বদেশে প্রত্যাবর্তন করেন শেখ হাসিনা। রাজনৈতিক পথচলায় তিনি ‘জননেত্রী’, ‘গণতন্ত্রের মানসকন্যা’, ‘দেশরত্ন’, ‘রাষ্ট্রনায়ক’ প্রভৃতি উপাধিতে ভূষিত হয়েছেন।

২০০৪ সালের ২১ আগস্ট তদানীন্তন বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের মদদে আওয়ামী লীগের সমাবেশে গ্রেনেড হামলা করে শেখ হাসিনাকে হত্যার চেষ্টা চালানো হয়। গুরুতর আহত হলেও প্রাণে বেঁচে যান তিনি। শুধু এই হামলা নয়, সাফল্য গাঁথা কর্মময় জীবন কখনোই কুসমাস্তীর্ণ ছিল না বঙ্গবন্ধুর বড় মেয়ের, ছিল কণ্টকাপূর্ণ।

মুক্তিযুদ্ধের ৯ মাস তিনি গৃহবন্দি থেকেছেন। এক/এগারোর সময়ও কারাগারে তার জীবননাশের ষড়যন্ত্র চলে। সামরিক স্বৈরশাসনামলেও বেশ কয়েকবার তাকে কারানির্যাতন ভোগ করতে হয়েছে। থাকতে হয়েছে গৃহবন্দি। বার বার তার জীবনের ওপর ঝুঁকি এসেছে। অন্তত ২০ বার তাকে হত্যার অপচেষ্টা চালানো হয়েছে। জীবনের ঝুঁকি নিয়েও তিনি অসীম সাহসে তার লক্ষ্য অর্জনে থেকেছেন অবিচল। হয়ে উঠেছেন বাঙালি জাতির ‘রানার’।

শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ এ পর্যন্ত চার মেয়াদে ক্ষমতাসীন হয়েছে। ১৯৯৬ সালে তার নেতৃত্বে দীর্ঘ ২১ বছর পর রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় আসে মুক্তিযুদ্ধে নেতৃত্ব দেয়া দলটি। ওই বছরের ১২ জুনের জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সংখ্যাগরিষ্ঠ আসনে বিজয়ী হয়ে ২৩ জুন সরকার গঠন করে আওয়ামী লীগ।

এরপর ২০০৮ সালের ২৯ ডিসেম্বরের ঐতিহাসিক নির্বাচনে চার-তৃতীয়াংশ আসনে ভূমিধস বিজয় অর্জনের মাধ্যমে ২০০৯ সালের ৬ জানুয়ারি আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন মহাজোট সরকার গঠিত হয়। দ্বিতীয়বারের মতো প্রধানমন্ত্রী হন শেখ হাসিনা। ২০১৪ এর ৫ জানুয়ারির নির্বাচনে বিজয়ের পর ১২ জানুয়ারি শেখ হাসিনার নেতৃত্বে টানা দ্বিতীয় মেয়াদের মহাজোট সরকার গঠিত হয়।

সবশেষ ২০১৮ সালের ৩০ ডিসেম্বরের নির্বাচনে জয়ী হয়ে সরকার পরিচালনা করছে শেখ হাসিনার দল। এছাড়া ১৯৮৬ সালের তৃতীয়, ১৯৯১ সালের পঞ্চম ও ২০০১ সালের অষ্টম সংসদে বিরোধী দলের নেতা হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন তিনি।

বাংলাদেশকে ২০৪১ সালের মধ্যে জ্ঞানভিত্তিক উন্নত রাষ্ট্র হিসেবে গড়ে তোলার প্রত্যয় নিয়ে উন্নত সমৃদ্ধ বাংলাদেশ বিনির্মাণে জননেত্রী শেখ হাসিনা ‘প্রেক্ষিত পরিকল্পনা তথা রূপকল্প-২০৪১’ ঘোষণা করেছেন। সেই রূপকল্প বাস্তবায়নে কাজ করে যাচ্ছে তার নেতৃত্বাধীন বর্তমান সরকার।

এছাড়াও আগামী প্রজন্মের জন্য একটি উন্নত, সমৃদ্ধ, শান্তিপূর্ণ, কল্যাণকর ও নিরাপদ বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার পাশাপাশি জলবায়ু সহিষ্ণু ব-দ্বীপ গড়ে তোলার লক্ষ্যে ‘ডেল্টা প্ল্যান-২১০০’ ঘোষণা করা হয়েছে।

দুই বছর বিরতি দিয়ে এবারও জন্মদিনে দেশের বাইরে অবস্থান করছেন বঙ্গবন্ধু-কন্যা। জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের অধিবেশনে যোগ দিতে এই মুহূর্তে যুক্তরাষ্ট্রে অবস্থান করছেন তিনি। ৪ অক্টোবর তার দেশে ফেরার কথা রয়েছে।

আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের পক্ষ থেকে যুক্তরাষ্ট্রে অবস্থানরত শেখ হাসিনাকে আজ জন্মদিনের ফুলেল শুভেচ্ছা জানানো হবে। ঢাকা থেকেও টেলিফোনে তাকে জন্মদিনের শুভেচ্ছা জানাবেন কেন্দ্রীয় নেতারা।

বিভিন্ন দল ও সংগঠন বিস্তারিত কর্মসূচির মধ্য দিয়ে আজ শেখ হাসিনার জন্মদিন পালন করবে। এ লক্ষ্যে কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে আজ বএকল ৩টায় বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে আলোচনা সভার আয়োজন করেছে আওয়ামী লীগ।

এছাড়াও কেন্দ্রীয়ভাবে বাদ জোহর জাতীয় মসজিদ বায়তুল মুকাররমসহ দেশের সব মসজিদে দোয়া ও মিলাদ মাহফিলের আয়োজন করা হবে। পাশাপাশি সকাল ১০টায় ধর্মরাজিক বৌদ্ধ মহাবিহারে (বাসাবো, সবুজবাগ) বৌদ্ধ সম্প্রদায়, সকাল ৯টায় মিরপুর ব্যাপ্টিস্ট চার্চে (৩/৭/এ সেনপাড়া, পর্বতা, মিরপুর-১০) খ্রীষ্টান এসোসিয়েশন বাংলাদেশ (সিএবি) এবং সকাল সাড়ে ১১টায় ঢাকেশ্বরী মন্দিরে হিন্দু সম্প্রদায় বিশেষ প্রার্থনা সভার আয়োজন করবে।

জন্মদিন আয়োজনের অংশ হিসেবে আজ ঢাকাসহ সারাদেশে সব সহযোগী সংগঠন আলোচনা সভা, আনন্দ শোভাযাত্রা, দোয়া মাহফিল, বিশেষ প্রার্থনা ও আলোকচিত্র প্রদর্শনীসহ বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করবে।

আরও পড়ুন:
শেখ হাসিনার জন্মদিন উপলক্ষে কাব্য সংকলন প্রকাশ
গণতন্ত্রের ধারাবাহিকতায় নির্বাচনের বিকল্প নেই: ডেপুটি স্পিকার
প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিনে বিটিভিতে দিনব্যাপী অনুষ্ঠান

মন্তব্য

প্রযুক্তি
Transferred 16 employees due to doctors harassment in own hospital

নিজ হাসপাতালে চিকিৎসকের হয়রানিতে ১৬ কর্মচারীকে বদলি

নিজ হাসপাতালে চিকিৎসকের হয়রানিতে ১৬ কর্মচারীকে বদলি রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল।
হাসপাতালের পরিচালক ডা. শরীফুল আলম বলেন, ‘আমি মেইলে দুটি পত্র পেয়েছি। তাতে বলা হয়েছে, এই বদলি জনস্বার্থে করা হয়েছে।’

মায়ের চিকিৎসা করাতে গিয়ে সম্প্রতি রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে হয়রানির শিকার হয়েছিলেন ওই হাসপাতালেরই এক চিকিৎসক। পরে এ হাসপাতালে কর্মচারীদের অব্যবস্থানা ও নৈরাজ্য বন্ধে আন্দোলন শুরু করেন চিকিৎসকরা।

এরই ধারাবাহিকতায় মঙ্গলবার সরকারি ওই হাসপাতালটির ১৬ কর্মচারীকে একযোগে বদলীর আদেশ দিয়েছে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়।

বদলীর আদেশসহ এক পরিপত্রে বলা হয়েছে, আগামী সাত কর্মদিবসে কর্মচারীদের নতুন কর্মস্থলে যোগ দিতে হবে।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন হাসপাতালের পরিচালক ডা. শরীফুল আলম।

তিনি বলেন, ‘আমি মেইলে দুটি পত্র পেয়েছি। তাতে বলা হয়েছে, এই বদলী জনস্বার্থে করা হয়েছে। দেশের বিভিন্ন সরকারি হাসপাতালে তাদের বদলী করা হয়েছে।’

বদলীর আদেশ পাওয়া কর্মচারীরা হলেন- অফিস সহায়ক সিরাজুল ইসলাম, বিউটি আক্তার, দুলাল বসুনিয়া, জানুরাম সরকার, নুরুজ্জামন, রইস উদ্দিন, মহিত আল রশিদ উদয়, আল আমিন ইসলাম, হামিদুল ইসলাম, মোরশেদ হাবীব, শাহজাদা মিয়া ও আবু জাফর।

এ ছাড়া নিরাপত্তা প্রহরী রহমত আলী, পরিচ্ছন্নকর্মী হাসিনা বেগম, ওয়ার্ড মাস্টার আবুল হাসান, স্টোনো টাইপিষ্ট আব্দুল আলীমকেও অন্যত্র বদলি করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, গত ১৭ সেপ্টেম্বর রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের অর্থো সার্জারি বিভাগের চিকিৎসক এবিএম রাশেদুল আমীর তার মাকে চিকিৎসার জন্য ওই হাসপাতালে পাঠান। পরে সেখানে ভর্তির জন্য অতিরিক্ত ২৫০ টাকা দাবি করা ছাড়াও বকশিস হিসেবে আরও ২০০ টাকা দাবি করা হয়।

এ ঘটনায় পরদিন হাসপাতালের পরিচালকসহ বিভিন্ন দপ্তরে লিখিত অভিযোগ দেন রাশেদুল আমীর।

সর্বশেষ গত সোমবার হাসপাতাল চত্বরে মানববন্ধন করেন চিকিৎসরা।

আরও পড়ুন:
ছাত্রীকে যৌন হয়রানির অভিযোগে শিক্ষক বরখাস্ত
অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে হয়রানির অভিযোগ কর্মচারীর
শহীদ মিনারে মারধর: কর্মবিরতিতে ঢাকা মেডিক্যালের ইন্টার্নরা
ডা. সাজ্জাদকে মারধর: ইন্টার্নদের কর্মবিরতির আল্টিমেটাম
শহীদ মিনারে মারধর: ইন্টার্ন চিকিৎসকদের আলটিমেটাম

মন্তব্য

প্রযুক্তি
Army felicitates victorious womens football team

সাফ জয়ী নারী ফুটবল দলকে সেনাবাহিনীর সংবর্ধনা

সাফ জয়ী নারী ফুটবল দলকে সেনাবাহিনীর সংবর্ধনা সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল এস এম শফিউদ্দিন আহমেদ কথা বলেন ফুটবলার ও কোচের সঙ্গে। ছবি: আইএসপিআর
ঢাকা সেনানিবাসের আর্মি মাল্টিপারপাস কমপ্লেক্সে আড়ম্বরপূর্ণ এই অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল এস এম শফিউদ্দিন আহমেদ। অনুষ্ঠানে জাতীয় নারী ফুটবল দলের খেলোয়াড়, কোচ ও সংশ্লিষ্ট সবাইকে ক্রেস্ট, উপহার সামগ্রী এবং এক কোটি টাকার চেক দেয়া হয়।

সাফ নারী ফুটবল চ্যাম্পিয়নশিপ-২০২২ জয়ী বাংলাদেশ জাতীয় নারী ফুটবল দলের গর্বিত সব খেলোয়াড়, কোচ ও কর্মকর্তাসহ সংশ্লিষ্টদের মঙ্গলবার সংবর্ধনা দিয়েছে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী।

ঢাকা সেনানিবাসের আর্মি মাল্টিপারপাস কমপ্লেক্সে আড়ম্বরপূর্ণ এই অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল এস এম শফিউদ্দিন আহমেদ। অনুষ্ঠানে জাতীয় নারী ফুটবল দলের খেলোয়াড়, কোচ ও সংশ্লিষ্ট সবাইকে ক্রেস্ট, উপহার সামগ্রী এবং এক কোটি টাকার চেক দেয়া হয়।

আন্তঃবাহিনী জনসংযোগ পরিদপ্তর (আইএসপিআর) এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানিয়েছে।

নেপালের কাঠমান্ডুতে ১৯ সেপ্টেম্বর অনুষ্ঠিত সাফ নারী ফুটবল চ্যাম্পিয়নশিপে বাংলাদেশ জাতীয় নারী ফুটবল দল ফাইনালে শক্তিশালী নেপালকে ৩-১ গোলে হারিয়ে অপরাজিত চ্যাম্পিয়ন হওয়ার গৌরব অর্জন করে।

সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে সেনাবাহিনী প্রধান বলেন, ‘এই জয়ের অনুপ্রেরণা নিয়ে বাংলাদেশের নারী ফুটবল দল আগামীতে আরও এগিয়ে যেতে পারবে। বিশ্বের বুকে দেশের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল করতে বাংলাদেশের নারী ফুটবলাররা বিশেষ ভূমিকা রাখবে বলে সবাই দৃঢ় আশাবাদী। সে সঙ্গে দেশের ক্রীড়াঙ্গনে এই সাফল্য নতুন প্রেরণার সঞ্চার করবে।’

অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের সভাপতি কাজী সালাউদ্দিন, জ্যেষ্ঠ সহ-সভাপতি আব্দুস সালাম মুর্শিদী এমপি, ফিফা কাউন্সিলের সদস্য ও বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের মহিলা উইং-এর চেয়ারম্যান মাহফুজা আক্তার কিরণ, বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর চিফ অফ জেনারেল স্টাফ (সিজিএস) লেফটেন্যান্ট জেনারেল আতাউল হাকিম সারওয়ার হাসান এবং সশস্ত্র বাহিনী বিভাগের প্রিন্সিপাল স্টাফ অফিসার (পিএসও) লেফটেন্যান্ট জেনারেল ওয়াকার-উজ-জামান ছাড়াও সামরিক বাহিনীর ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা, চ্যাম্পিয়ন দলের নারী ফুটবলারদের গর্বিত অভিভাবকগণ ও অন্য অতিথিবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

আরও পড়ুন:
সাবিনা-কৃষ্ণার জয়ে মুশফিকের ‘আলহামদুলিল্লাহ’
সাফ শিরোপা: ছেলেদের থেকে এগিয়ে মেয়েরা
বাংলাদেশ চ্যাম্পিয়ন
বাংলাদেশের সামনে ইতিহাসের হাতছানি
অপরাজিত থেকেই ফাইনালে ছোটনের শিষ্যরা

মন্তব্য

প্রযুক্তি
Madrasa teacher beaten up on charges of attempted rape

ধর্ষণচেষ্টার অভিযোগে মাদ্রাসার শিক্ষককে পিটুনি

ধর্ষণচেষ্টার অভিযোগে মাদ্রাসার শিক্ষককে পিটুনি
শিশুর মা জানান, গত জানুয়ারি মাসে মেয়েকে স্থানীয় মাদ্রাসায় ভর্তি করা হয়েছে। সেখানে গত সোমবার সকালে মেয়েটিকে মাদ্রাসার ছাদে নিয়ে হাত-পা বেঁধে ও মুখে স্কচটেপ লাগিয়ে যৌন হয়রানি করেন।

ফেনীর বালিগাঁও ইউনিয়নে ৫ বছর বয়সী ছাত্রীকে ধর্ষণচেষ্টার অভিযোগে মাদ্রাসাশিক্ষককে আটকে পিটুনি দিয়েছেন শিশুর মা ও স্থানীয়রা। পরে তাকে পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

পিটুনির ভিডিও মঙ্গলবার ভাইরাল হলে ঘটনা জানাজানি হয়।

ফেনী মডেল থানার ওসি নিজাম উদ্দিন এসব নিশ্চিত করে জানান, ওই শিক্ষকের নাম ফখরুল ইসলাম। তাকে আটক করে থানায় রাখা হয়েছে। শিশু পরিবার থেকে মামলা হলে তাকে গ্রেপ্তার দেখানো হবে।

শিশুর মা জানান, গত জানুয়ারি মাসে মেয়েকে স্থানীয় মাদ্রাসায় ভর্তি করা হয়েছে। সেখানে গত সোমবার সকালে মেয়েটিকে মাদ্রাসার ছাদে নিয়ে হাত-পা বেঁধে ও মুখে স্কচটেপ লাগিয়ে যৌন হয়রানি করেন। মেয়ে বাড়ি ফিরে বিষয়টি জানালে মঙ্গলবার তিনি মাদ্রাসায় যান।

তিনি বলেন, ‘আমি অভিযোগ করতে মাদ্রাসায় গেলে প্রধান শিক্ষক ব্যবস্থা না নিয়ে ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা করেন। ফখরুল ইসলামের পক্ষে সাফাই গেয়ে উল্টো বলেন যে তিনি নাকি এসবে জড়িত না।

‘এসব মাদ্রাসা চালু থাকলে ভবিষ্যতে এরকম ঘটনা আরও ঘটবে। মাদ্রাসায় কোনো নিয়ম-নীতি নাই। শুধুমাত্র টাকা রোজগার করার জন্য মাদ্রাসা চালু করেছে। এখানকার শিক্ষকরা অন্য ছাত্রীদের সঙ্গেও নাকি এসব করেছে। কেউ হয়তো মুখ খুলছে না।’

ওসি নিজাম উদ্দিন জানান, মামলা হলে শিশুটির শারীরিক পরীক্ষা করা হবে ও পরে আদালতে ২২ ধারায় জবানবন্দি নেয়া হবে। একই সঙ্গে আটক ব্যক্তির বিরুদ্ধে পরবর্তী পদক্ষেপ নেয়া হবে।

আরও পড়ুন:
ধর্ষণের দায়ে যাবজ্জীবন, সন্তানকে স্বীকৃতি দেয়ার নির্দেশ
২ কিশোরী ধর্ষণ মামলায় তিনজনের যাবজ্জীবন
ছাত্রকে ধর্ষণের অভিযোগে মাদ্রাসাশিক্ষক গ্রেপ্তার
কিশোরীকে ‘সংঘবদ্ধ ধর্ষণ’, ৩ যুবক কারাগারে
চাকরির প্রলোভনে কিশোরীকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণ, গ্রেপ্তার ৩

মন্তব্য

প্রযুক্তি
Poetry collection published on the occasion of Sheikh Hasinas birthday

শেখ হাসিনার জন্মদিন উপলক্ষে কাব্য সংকলন প্রকাশ

শেখ হাসিনার জন্মদিন উপলক্ষে কাব্য সংকলন প্রকাশ বঙ্গীয় সাহিত্য সংস্কৃতি সংসদ মঙ্গলবার শিল্পকলা একাডেমিতে আয়োজন করে ‘হাজার লেখকের সম্মিলন ২০২২’। ছবি: নিউজবাংলা
বঙ্গীয় সাহিত্য সংস্কৃতি সংসদের এই আয়োজনে প্রকাশ পেয়েছে দেশ-বিদেশের প্রথিতযশা ৭৬জন কবির কবিতা নিয়ে ‘বঙ্গোত্তম শেখ হাসিনাকে নিবেদিত কবিতা’ সংকলন এবং তারুণ্যে উদ্দীপ্ত লেখকদের উৎসর্গ করা চারশ’ কবির ‘নবযাত্রা’ ও ‘অগ্রযাত্রা’ নামে দুটি কবিতা সংকলন।

প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার ৭৬তম জন্মদিন উপলক্ষে ‘হাজার লেখকের সম্মিলন ২০২২’ অনুষ্ঠিত হয়েছে। বঙ্গীয় সাহিত্য সংস্কৃতি সংসদের আয়োজনে মঙ্গলবার বিকেলে বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় নাট্যশালায় এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

অনুষ্ঠানে প্রকাশ পেয়েছে দেশ-বিদেশের প্রথিতযশা ৭৬জন কবির কবিতা নিয়ে ‘বঙ্গোত্তম শেখ হাসিনাকে নিবেদিত কবিতা’ সংকলন এবং তারুণ্যে উদ্দীপ্ত লেখকদের উৎসর্গীকৃত চারশ’ কবির ‘নবযাত্রা’ ও ‘অগ্রযাত্রা’ নামে দুটি কবিতা সংকলন।

সম্মিলনের উদ্বোধন করেন নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফ। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন কথাশিল্পী সেলিনা হোসেন।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত অতিথিদের নিয়ে কাব্যগ্রন্থগুলোর মোড়ক উন্মোচন করেন তারা।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে মাহবুব-উল আলম হানিফ বলেন, ‘বাংলাদেশ এখন উন্নয়নশীল রাষ্ট্র। যে ধারায় উন্নয়ন-অগ্রগতি হচ্ছে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে, তা অব্যাহত থাকলে ২০৪১ সালের মধ্যে বাংলাদেশ উন্নত রাষ্ট্র হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হবে। এই অবিশ্বাস্য ঘুরে দাঁড়ানোর সম্ভাবনা তৈরি হয়েছে শেখ হাসিনার কারণে। তার দক্ষ-বিচক্ষণ নেতৃত্ব, মেধা-প্রজ্ঞা ও বিচক্ষণতার কারণে আজ আমরা এ পর্যায়ে আসতে সক্ষম হয়েছি।’

তিনি বলেন, ‘আমরা মনে করি শেখ হাসিনা এসেছিলেন বাঙালি জাতির মুক্তির আলোবর্তিকা হয়ে। তিনি এসেছিলেন বলেই আজ আমরা উন্নত বাংলাদেশ গড়ার স্বপ্ন দেখতে পারছি। আজকের এই দিনে সব কবির পক্ষ থেকে শেখ হাসিনাকে আমরা শ্রদ্ধা জানাই, তার জন্মদিনের শুভেচ্ছা জানাই।’

অনুষ্ঠানে মাসব্যাপি কর্মসূচি ঘোষণা করেন বঙ্গীয় সাহিত্য সংস্কৃতি সংসদের সাধারণ সম্পাদক কবি ও প্রাবন্ধিক কামরুল ইসলাম।

কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে- ২৮ অক্টোবর বিকেল ৪টায় বাংলা একাডেমিতে আন্তর্জাতিক সেমিনার এবং ২৯ অক্টোবর সমাপনী অনুষ্ঠান।

শেষ দিনের আয়োজনে রয়েছে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সমাধিতে শ্রদ্ধা জ্ঞাপন এবং বঙ্গোত্তম শেখ হাসিনার জন্মস্থানে সাংস্কৃতিক উৎসব।

সমাপনীতে দুদিনের অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ ও ভারতসহ বিভিন্ন দেশের প্রতিনিধি যোগ দেবেন।

আরও পড়ুন:
প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিনে বিটিভিতে দিনব্যাপী অনুষ্ঠান

মন্তব্য

প্রযুক্তি
Russel unleashed the Viper causing panic

রাসেলস ভাইপার অবমুক্ত করায় গড়াই পাড়ে আতঙ্ক

রাসেলস ভাইপার অবমুক্ত করায় গড়াই পাড়ে আতঙ্ক শামীম হোসেন নামে এক মাছ শিকারীর জালে ধরা পড়ে সাপটি। ছবি: নিউজবাংলা
বনবিভাগ সূত্রে জানা গেছে, বাংলাদেশে যেসব সাপ দেখা যায়, এদের মধ্যে রাসেলস ভাইপারই সবচেয়ে বিষাক্ত। এটি বাংলাদেশে চন্দ্রবোড়া বা উলুবোড়া নামেও পরিচিত।

কুষ্টিয়ায় পদ্মা নদীতে ধরা পড়া বিষধর একটি রাসেলস ভাইপার সাপ গড়াই নদীতে অবমুক্ত করা হয়েছে। এ নিয়ে মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে ওই নদী তীরবর্তী অঞ্চলে বসবাসকারীদের মধ্যে।

মঙ্গলবার বেলা ১১টার দিকে গড়াই রেল ও সড়ক সেতুর নিচে সাপটিকে অবমুক্ত করা হয়েছে বলে উপজেলা বনবিভাগের কর্মকর্তা আরিফুল ইসলাম নিশ্চিত করেছেন।

এর আগে পদ্মা নদীতে শামীম হোসেন নামে এক মাছ শিকারীর জালে সাপটি ধরা পড়ে।

শামিম হোসেন বলেন, ‘প্রতিদিনের মতো আজ সকাল ৭টার দিকে নদীতে পাতা দোয়াড় জাল তুলে দেখি একটি অন্যরকম সাপ। প্রথমে অজগর মনে করেছিলাম। পরে বনবিভাগের লোকজন এটিকে বিষাক্ত রাসেলস ভাইপার হিসেবে চিহ্নিত করে নিয়ে যায়।’

এদিকে গড়াই নদীতে বিষাক্ত রাসেলস ভাইপার সাপটি অবমুক্ত করায় চিন্তিত নদীটির পাড়ে বসবাস করা লোকজন।

কুমারখালী উপজেলা নাগরিক কমিটির সভাপতি মো. আকরাম হোসেন বলেন, ‘পদ্মা থেকে এনে সাপটিকে গড়াইয়ে ছেড়ে দিয়ে লাভ কি হলো? গড়াই নদীপাড়ে লোকালয় বেশি। এটা দায়সারা কাজ হয়েছে। অনেক দূরে কোথাও ফাঁকা স্থানে অবমুক্ত করলে ভাল হতো।’

তিনি আরও বলেন, ‘পরিবেশের ভারসাম্যের জন্য বিলুপ্তপ্রায এই সাপ যেমন টিকিয়ে রাখা দরকার, তেমনি মানুষের নিরাপত্তার কথাও চিন্তা করা উচিত।

রাসেলস ভাইপার অবমুক্ত করায় গড়াই পাড়ে আতঙ্ক
গড়াই রেল ও সড়ক সেতুর নিচে সাপটিকে অবমুক্ত করা হয়েছে

এদিকে কুষ্টিয়া বিভাগীয় বন কর্মকর্তা জি এম মোহাম্মদ কবির বলেন, ‘ধারণা করা হচ্ছে সাপটি ভারত থেকে পদ্মা নদী হয়ে এসেছে। জব্দ করার পর গড়াই নদে অবমুক্ত করা হয়। এতে আতঙ্কের কিছু নেই। নদী বেয়ে অন্যত্র চলে যাবে।’

এ বিষয়ে কুমারখালী থানার ওসি কামরুজ্জামান তালুকদার বলেন, ‘এখানে আমাদের কিছু করার নেই। বিষয়টি বনবিভাগের। তারাই ভাল বলতে পারবেন।’

বনবিভাগ সূত্রে জানা গেছে, এর আগেও পদ্মা ও গড়াই নদীতে বেশ কয়েকবার রাসেল ভাইপার সাপ পাওয়া গেছে। পরে সেগুলো নদীর দুর্গম চরে অবমুক্ত করা হয়েছে।

বাংলাদেশে যেসব সাপ দেখা যায়, এদের মধ্যে রাসেলস ভাইপারই সবচেয়ে বিষাক্ত। এটি বাংলাদেশে চন্দ্রবোড়া বা উলুবোড়া নামেও পরিচিত।

আরও পড়ুন:
সাপের ছোবলে প্রাণ গেল স্কুলছাত্রীর
চবিতে ১০ ফুট লম্বা অজগর
ভাইয়ের শেষকৃত্যে এসে তারও মৃত্যু সাপের ছোবলে
সাপের ছোবলে প্রাণ গেল ২ মাদ্রাসাছাত্রের
সাপের মাথার আকৃতি বলে দেয় বিষধর কি না

মন্তব্য

p
উপরে