× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

প্রযুক্তি
আইফোনে স্টোরেজ ১ টেরাবাইট
hear-news
player
google_news print-icon

আইফোনে স্টোরেজ ১ টেরাবাইট!

আইফোনে-স্টোরেজ-১-টেরাবাইট
আইফোন ১৩ মডেলের স্টোরেজ ১ টেরাবাইট রাখা হতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে। ছবি: সংগৃহীত
গত কয়েক বছরে দেখা যায়, আইফোনের ১২৮ জিবি স্টোরেজ সংস্করণের চাহিদা ছিল বেশি। ক্রমেই চাহিদা কমে গেছে ৬৪ জিবি সংস্করণ ফোনের। আইফোন ১২ প্রো মডেলটি ৫১২ জিবি স্টোরেজের হওয়ায় চাহিদা ছিল সবচেয়ে বেশি।

দিন দিন ব্যবহারকারীদের কাছে স্মার্টফোনের স্টোরেজ চাহিদা বাড়ছে। গ্রাহকের চাহিদাকে মূল্যায়ন করায় নামডাক কিছুটা বেশিই রয়েছে আইফোন প্রস্তুতকারক অ্যাপলের।

চলতি বছর আইফোন ১৩ সিরিজ বাজারে ছাড়বে অ্যাপল। এই সিরিজের ফোনগুলোর স্টোরেজ এক টেরাবাইট হবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

অ্যান্ড্রয়েড ব্যবহারকারীদের তুলনায় আইফোন ব্যবহারকারীদের স্টোরেজের চাহিদা বেশি বলে বিভিন্ন সময় প্রকাশ হওয়া প্রতিবেদনে তুলে ধরা হয়েছে।

ইন্ডিয়া টুডের প্রতিবেদনে বলা হয়, বাজার গবেষণা প্রতিষ্ঠান কাউন্টারপয়েন্ট রিসার্চের হিসাব অনুযায়ী, অ্যান্ড্রয়েডে হুয়াওয়ের স্টোরেজের চাহিদা সবচেয়ে বেশি। এর পরই রয়েছে আইফোনের স্টোরেজ চাহিদা।

প্রতিষ্ঠানটি বলছে, স্মার্টফোনে স্টোরেজের পরিমাণ এখন গড়ে ১০০ জিবি ছাড়িয়ে গেছে।

কাউন্টারপয়েন্টের মতে, দামের দিক থেকে যেমন আইফোন উচ্চমূল্যের, তেমনি আবার এর গড় এনএএনডি ফ্ল্যাশের ঘনত্বও অ্যান্ড্রয়েডের তুলনায় বেশি। এই গ্যাপটা খুব দ্রুতই আইফোন পূরণ করেছে তাদের আইফোন ১২ সিরিজ দিয়ে। এ সিরিজের সেটে তারা ৫১২ জিবি পর্যন্ত স্টোরেজ দিয়েছে।

গত কয়েক বছরে দেখা যায়, আইফোনের ১২৮ জিবি স্টোরেজ সংস্করণের চাহিদা ছিল বেশি। ক্রমেই চাহিদা কমে গেছে ৬৪ জিবি সংস্করণ ফোনের।

আইফোন ১২ প্রো মডেলটি ৫১২ জিবি স্টোরেজের হওয়ায় চাহিদা ছিল সবচেয়ে বেশি।

অ্যাপলের খবর নিয়মিত প্রকাশ করা সাইট নাইটটুফাইভ ম্যাকের এক প্রতিবেদন বলছে, চলতি বছর আইফোন ১৩ সিরিজটিতে থাকতে পারে এক টেরাবাইট স্টোরেজ।

একটি ছোট জরিপ চালায় নাইটটুফাইভ ম্যাক। সেখানে ৭০ শতাংশ বলেছেন, এক টেরাবাইটের আইফোন ১৩ হতে পারে বাড়তি স্টোরেজসম্পন্ন। ১২ শতাংশ বলেছে, তারা অবশ্যই একটি করে ফোন কিনবেন। অন্য ১১ শতাংশ অবশ্য ফোন কেনার আগে এই স্টোরেজের সুবিধা-অসুবিধাগুলো দেখে নেয়ার কথা জানিয়েছেন।

একই প্রতিবেদনে দাবি করা হয়েছে, আইফোন ১৩ সিরিজে থাকছে সামনে ছোট আকারের নচ, বড় আকারের ডিসপ্লে।

সম্প্রতি অ্যাপলকে আইফোনের ডিসপ্লে ক্রমাগত বাড়াতে দেখা গেছে। সেই থেকে ধারণা করা হচ্ছে, আইফোন ১৩ প্রো ম্যাক্স আসতে পারে ৬.৭ ইঞ্চি ডিসপ্লেতে। সবকিছু ঠিক থাকলে সেপ্টেম্বরেই দেখা যাবে আইফোন ১৩।

আরও পড়ুন:
বিমান থেকে পড়েও অক্ষত আইফোন
ফাইভজি স্পিডে আসছে আইফোন ১২

মন্তব্য

আরও পড়ুন

প্রযুক্তি
999 called the dead body of the young woman

৯৯৯-এ ফোন, মিলল তরুণীর মরদেহ

৯৯৯-এ ফোন, মিলল তরুণীর মরদেহ এনজিও কর্মী নিশাত আহমেদ। ছবি: সংগৃহীত
বাড়ির মালিক গফুর সওদাগর বলেন, ‘বৃহস্পতিবার রাত পৌনে ৯টার দিকে বাসার দ্বিতীয় তলায় নিশাতের রুমের দিকে যায় আমার মেয়েরা। বরাবরের মতোই তার বাসার দরজা ভেড়ানো ছিল। ধাক্কা দিতেই দরোজা খুলে যায়। মেয়েরা তার দেহ ঝুলন্ত দেখতে পায়। তারপর ৯৯৯ নম্বরে ফোন করা হয়।’

কক্সবাজার শহরের পশ্চিম বাহারছড়া এলাকায় এক নারী এনজিও কর্মীর ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। তার নাম নিশাত আহমেদ।

বৃহস্পতিবার রাত ১১টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন কক্সবাজার সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. রফিকুল ইসলাম।

নিশাত আহমেদ শহরের পশ্চিম বাহারছড়া এলাকার গফুর সওদাগরের বাড়িতে ভাড়া থাকতেন। তার গ্রামের বাড়ি চকরিয়ার ডুলাহাজারায়। তিনি আন্তর্জাতিক একটি এনজিও সংস্থায় সিকিউরিটি গার্ড হিসেবে কর্মরত ছিলেন।

বাড়ির মালিক গফুর সওদাগর বলেন, ‘বৃহস্পতিবার রাত পৌনে ৯টার দিকে বাসার দ্বিতীয় তলায় নিশাতের রুমের দিকে যায় আমার মেয়েরা। বরাবরের মতোই তার বাসার দরজা ভেড়ানো ছিল। ধাক্কা দিতেই দরোজা খুলে যায়। মেয়েরা তার দেহ ঝুলন্ত দেখতে পায়। তারপর ৯৯৯ নম্বরে ফোন করা হয়।’

ঘটনাস্থলে থাকা কক্সবাজার সদর মডেল থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) ইফতেখার উদ্দিন বলেন, ‘৯৯৯-এ ফোন পেয়ে আমরা ঘটনাস্থলে এসে এক তরুণীর ঝুলন্ত মরদেহ পেয়েছি। মরদেহ নামিয়ে ময়না তদন্তের জন্য কক্সবাজার সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। বিষয়টি তদন্ত করা হচ্ছে।’

আরও পড়ুন:
মসজিদের মেস ঘরে খাদেমের ঝুলন্ত মরদেহ
ধানমন্ডির রাস্তায় হুইল চেয়ারে মরদেহ
বংশালের গলিতে রক্তাক্ত মরদেহ
নিখোঁজের ৪ দিন পর টয়লেটের ট্যাংকে মা-ছেলের মরদেহ
মুক্তিপণের দাবিতে অপহৃত শিশুর বস্তাবন্দি মরদেহ

মন্তব্য

প্রযুক্তি
Child dies of Nipah virus in Natore

নাটোরে নিপাহ ভাইরাসে শিশুর মৃত্যু

নাটোরে নিপাহ ভাইরাসে শিশুর মৃত্যু মৃত সিয়ামের পরিবারের সঙ্গে কথা বলছেন স্বাস্থ্য কর্মীরা। ছবি: নিউজবাংলা
সিয়ামের বাবা কামারুল ইসলাম বলেন, ‘গত জানুয়ারি মাসের প্রথম সপ্তাহে কাঁচা খেজুরের রস খায় সিয়াম। তারপর গত ২৯ জানুয়ারি অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।’

নাটোরের বাগাতিপাড়ায় নিপাহ ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে সিয়াম হোসেন (১২) নামে এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে।

সিভিল সার্জন বৃহস্পতিবার বিকেলে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

মৃত সিয়াম উপজেলার করমদোশী গ্রামের কামরুল ইসলামের ছেলে। সে স্থানীয় দোবিলা উচ্চ বিদ্যালয়ের সপ্তম শ্রেণির শিক্ষার্থী ছিল।

সিয়ামের বাবা কামারুল ইসলাম বলেন, ‘গত জানুয়ারি মাসের প্রথম সপ্তাহে কাঁচা খেজুরের রস খায় সিয়াম। তারপর গত ২৯ জানুয়ারি অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।’

সিভিল সার্জন ড. রোজী আরা খাতুন জানান, সিয়াম অসুস্থ হলে তাকে পুঠিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। পরবর্তীতে তাকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় গত ৩০ জানুয়ারি সন্ধ্যায় তার মৃত্যু হয়। পরে শিশুটির নমুনা সংগ্রহ করে রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউটে (আইইডিসিআর) পাঠায় রামেক হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। সেখানে ল্যাব টেষ্টে নিপাহ ভাইরাসের জীবাণু পাওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত হওয়া গেছে।

জেলা প্রশাসক শামীম আহমেদ বলেন, ‘নিপাহ ভাইরাসের সংক্রমণ রোধে প্রচার প্রচারণা চালানো হবে। এ বিষয়ে জনসচেতনতা সৃষ্টিতে জনপ্রতিনিধিদের নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।’

আরও পড়ুন:
মাথা থেকে ধোঁয়া বের হওয়ার কারণ খুঁজছেন চিকিৎসকরা
পান খেলে মাথা দিয়ে বের হয় ধোঁয়া!
সাবেক এমপি মোজাম্মেল হকের মৃত্যু
২০ চাকরি দিচ্ছে নাটোর জেলা প্রশাসকের কার্যালয়
হাটের জায়গা দখলে, বিক্রেতারা সড়কের পাশে

মন্তব্য

প্রযুক্তি
Parents get married in the court with the child crying

শিশুর কান্নায় আদালতেই বাবা-মায়ের বিয়ে

শিশুর কান্নায় আদালতেই বাবা-মায়ের বিয়ে সন্তান কোলে শিমুল ও জান্নতা দম্পতি। ছবি: নিউজবাংলা
বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা শেষে বিচারক স্বামী-স্ত্রী দুজনকেই তার খাসকামরায় ডেকে নিয়ে ভবিষ্যতের জন্য শুভকামনা জানান এবং শিশুটিকে কোলে নিয়ে কিছুক্ষণ আদর করেন। আদালতের এই মানবিক উদ্যোগে বাদী, আসামি, আইনজীবী, আদালতের পেশকার, পিয়ন, ম্যাজিস্ট্রেটসহ সবাই তখন আনন্দাশ্রুতে ভিজছেন।

স্বামী-স্ত্রীর মনোমালিন্যের জেরে ঘটেছিল বিচ্ছেদ। পরে স্বামীর বিরুদ্ধে যৌতুকের একটি মামলাও করেছিলেন স্ত্রী। সেই মামলার শুনানি চলাকালে তাদের একমাত্র শিশু সন্তানের কান্নায় চোখ আটকে যায় আদালত কক্ষের বিচারকসহ উপস্থিত সবার। শেষ পর্যন্ত এতে হস্তক্ষেপ করেন বিচারক নিজেই। আদালতেই বিয়ে পড়ানো হয় ওই শিশুর বাবা ও মায়ের ।

রাজশাহী মেট্রপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে-২-এ বৃহস্পতিবার এমন ঘটনা ঘটেছে।

আদালত সূত্রে জানা গেছে, রেলওয়ে কর্মচারী শিমুল পারভেজের সঙ্গে ২০২১ সালের ২ এপ্রিল জান্নাত ফেরদৌসের বিয়ে হয়। তাদের বাড়ি রাজশাহীর পবা উপজেলার কাঁটাখালি এলাকায়, তবে নিজেদের মধ্যে মনোমালিন্যের জেরে গত বছরের অক্টোবর মাসে তাদের সংসার ভেঙে যায়। গত ১২ অক্টোবর শিমুলের বিরুদ্ধে জান্নাত ফেরদৌস আদালতে মামলা করেন।

বৃহস্পতিবার মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মাসুদুজজামানের আদালতে সেই মামলার জামিন শুনানি চলছিল। সাক্ষীর কাঠগড়ায় মামলার বাদী জান্নাত ফেরদৌসের কোলে তার ছয় মাসের শিশু কাঁদছিল। আসামির কাঠগড়ায় দাঁড়িয়ে বাবা শিমুল। আদালতে জান্নাতের বাবা-মা এবং শিমুলের বাবা উপস্থিত ছিলেন। শুনানিকালে জান্নাতের কোলে কাঁদছিলো তার ছোট্ট সন্তান। জান্নাতের চোখ গড়িয়েও পড়ছিল পানি। মাথা নিচু করে কাঠগড়ায় দাঁড়িয়ে ছিলেন শিমুল। দুই পক্ষের আইনজীবী পক্ষে-বিপক্ষে তাদের বক্তব্য রাখছিলেন। ওই সময়ই আদালতের দৃষ্টি পড়ে শিশুটির ওপর।

একপর্যায়ে আদালত দুই পক্ষকেই কিছু উপদেশমূলক কথা বলেন। এ সময় শিমুল ও জান্নাত দুজনই আপস করতে রাজি হন, কিন্তু তা অবশ্যই আদালতের মধ্যস্থতায়। এ সময় দুই পক্ষের আইনজীবীর অনুরোধে আদালত বিচারকাজ শেষে আদালতে কক্ষের ভেতরেই উভয় পক্ষের আইনজীবী, অভিভাবক ও বার সমিতির সম্পাদকের উপস্থিতিতে কাজী ডাকেন। আদালতের ভেতরেই এক লাখ টাকা দেনমোহর নির্ধারণ করে ইসলামি শরিয়ত মোতাবেক পুনরায় শিমুল ও জান্নাতের বিয়ে দেয়া হয়। পরে আদালত সবাইকে মিষ্টিমুখ করান।

বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা শেষে বিচারক স্বামী-স্ত্রী দুজনকেই তার খাসকামরায় ডেকে নিয়ে ভবিষ্যতের জন্য শুভকামনা জানান এবং শিশুটিকে কোলে নিয়ে কিছুক্ষণ আদর করেন। আদালতের এই মানবিক উদ্যোগে বাদী, আসামি, আইনজীবী, আদালতের পেশকার, পিয়ন, ম্যাজিস্ট্রেটসহ সবাই তখন আনন্দাশ্রুতে ভিজছেন।

বাদী পক্ষের আইনজীবী রেবেকা সুলতানা বলেন, মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মাসুদুজ্জামান এই আদালতে যোগ দেওয়ার পর থেকে মানবিক বিচারের দৃষ্টান্ত স্থাপন করে যাচ্ছেন। তার আন্তরিক প্রচেষ্টায় এবার আদালতকক্ষে ব্যতিক্রমী বিয়ের আয়োজনের মাধ্যমে একটি সংসারের ভাঙন ঠেকানো গেল।

আরও পড়ুন:
বাউন্ডারি বাঁচাতে গিয়ে হাত ভাঙলেন পাইলট
রাবি শিক্ষক সমিতির নির্বাচনে আওয়ামীপন্থীদের জয়
‘ক্ষতি করতে চেয়ে উপকার করেছে সরকার’
সমাবেশ শেষের আগেই রাজশাহীতে বাস চলাচল শুরু
সরকার ভয় পেয়ে গেছে: ফখরুল

মন্তব্য

প্রযুক্তি
Seeing the development BNP is suffering from internal combustion Kader

উন্নয়ন দেখে বিএনপি অন্তর্জ্বালায় ভুগছে: কাদের

উন্নয়ন দেখে বিএনপি অন্তর্জ্বালায় ভুগছে: কাদের আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। ফাইল ছবি
আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘এই জনপদে দুইজন মানুষ কোনোদিন অস্তিত্ব হারাবেন না। একজন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, আমাদের স্বাধীনতার জন্য। তার পাশাপাশি অর্থনৈতিক মুক্তির জন্য আমাদের নেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মানুষের মধ্যে বেঁচে থাকবেন।’

আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, সরকারের একের পর এক উন্নয়ন কাজ দেখে বিএনপি অন্তর্জ্বালায় ভুগছে। কত যে জ্বালা! পদ্মা সেতুর জ্বালা, মেট্রোরেলের জ্বালা, বঙ্গবন্ধু ট্যানেলের জ্বালা, উড়াল সেতুর জ্বালা, ১০০ সেতুর জ্বালা, ১০০ সড়কের জ্বালা। এই জ্বালায় তারা মরে যাচ্ছে।’

বৃহস্পতিবার বাংলাদেশের প্রথম পাতাল মেট্রোরেল (এমআরটি লাইন-১) নির্মাণ কাজের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে সভাপতির বক্তব্যে তিনি এসব কথা জানান।

অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে পূর্বাচল ৪ নম্বর সেক্টরে ম্যাস র‌্যাপিড ট্রানজিট (এমআরটি) লাইন-১ নির্মাণ কাজের উদ্বোধনী ফলক উন্মোচন করেন।

অনুষ্ঠানে সভাপতির বক্তব্যে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী বলেন, ‘সামনে আছে রূপপুর, মাতারবাড়ি, পায়রা, রামপাল বিদ্যুৎ উৎপাদন কেন্দ্র, সমুদ্র বিজয়, সীমান্ত বিজয়। এসবই শেখ হাসিনার উন্নয়নের অর্জন। এই অর্জন বিএনপি সইতে পারছে না।’

আগামী নির্বাচনের জন্য প্রস্তুত হতে দলীয় নেতাকর্মীদের নির্দেশনা দিয়ে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘১০ ডিসেম্বর সরকার পতন, তারেক রহমানের আগমন সবই ভুয়া। বিএনপির আন্দোলন ও সরকার পতন সবই ভুয়া। ‘বিএনপি শুরু করেছে বিক্ষোভ দিয়ে, এখন করছে নীরব পদযাত্রা। পথ হারিয়ে বিএনপি এখন পদযাত্রায়।

‘আপনাদের ভয় পাওয়ার কিছু নেই। যতদিন শেখ হাসিনার হাতে থাকবে দেশ, পথ হারাবে না বাংলাদেশ। কাজেই আপনারা প্রস্তুত থাকুন, সামনে খেলা হবে, ডিসেম্বরে ফাইনাল খেলা। ষড়যন্ত্রের বিরুদ্ধে, জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে, আগুন-সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে, ভোট চুরির বিরুদ্ধে, দুর্নীতির বিরুদ্ধে ও অস্ত্র পাচারের বিরুদ্ধে খেলা হবে?’

সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী বলেন, ‘এই জনপদে দুইজন মানুষ কোনোদিন অস্তিত্ব হারাবেন না। একজন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, আমাদের স্বাধীনতার জন্য। তার পাশাপাশি অর্থনৈতিক মুক্তির জন্য আমাদের নেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মানুষের মধ্যে বেঁচে থাকবেন।’

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বস্ত্র ও পাটমন্ত্রী গোলাম দস্তগীর গাজী, ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র আতিকুল ইসলাম, বাংলাদেশে জাপানের রাষ্ট্রদূত ইওয়ামা কিমিনোরি প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

আরও পড়ুন:
বিএনপির আন্দোলন জোয়ার থেকে ভাটার দিকে: কাদের
নীরব পদযাত্রায় সরকার পতনের স্বপ্ন ভুয়া: কাদের
পথ হারিয়ে বিএনপি পদযাত্রা শুরু করেছে: কাদের
পদযাত্রায় বিএনপির রাজনৈতিক মৃত্যু দেখছেন কাদের
শেখ হাসিনা সত্য ও সুন্দরের অভিসারী: কাদের

মন্তব্য

প্রযুক্তি
Not more than 5 percent of the votes were cast in the by election Fakhrul

উপনির্বাচনে ৫ ভাগের বেশি ভোট পড়েনি: ফখরুল

উপনির্বাচনে ৫ ভাগের বেশি ভোট পড়েনি: ফখরুল বৃহস্পতিবার নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে যৌথ সভা শেষে বক্তব্য দেন মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। ছবি: নিউজবাংলা
বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘সরকার দেশের নির্বাচনী ব্যবস্থা পুরোপুরি ধ্বংস করে দিয়েছে। পত্র-পত্রিকায় ছাপা হওয়া ছবিগুলো দেখলেই বুঝতে পারবেন বুধবার একেবারে ২০১৪ সালের মতো নির্বাচন হয়েছে। গণতন্ত্রের সব প্রতিষ্ঠানকে তারা ধ্বংস করে ফেলেছে।’

বিএনপির সংসদ সদস্যদের পদত্যাগে শূন্য হওয়া ৬ সংসদীয় আসনের উপনির্বাচনে ৫ শতাংশের বেশি ভোট পড়েনি বলে দাবি করেছেন মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

বৃহস্পতিবার বিকেলে রাজধানীর নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে যৌথ সভা শেষে বিএনপি মহাসচিব এমনটা দাবি করেন। ৪ ফেব্রুয়ারি শনিবারের বিভাগীয় সমাবেশ সফল করার লক্ষ্যে এই যৌথসভার আয়োজন করা হয়।

মির্জা ফখরুল বলেন, ‘সরকার দেশের নির্বাচনী ব্যবস্থা পুরোপুরি ধ্বংস করে দিয়েছে। বুধবারের তথাকথিত উপনির্বাচনে ভোট প্রদানের হার তাদের হিসাব অনুযায়ী ১৫ থেকে ২০ শতাংশ। তবে আমাদের হিসাবমতে এটা ৫ শতাংশের বেশি না।

‘পত্র-পত্রিকায় ছাপা হওয়া ছবিগুলো দেখলেই বুঝতে পারবেন একেবারে ২০১৪ সালের মতো নির্বাচন হয়েছে। গণতন্ত্রের সব প্রতিষ্ঠানকে তারা ধ্বংস করে ফেলেছে।’

তিনি বলেন, ‘সরকার অত্যন্ত পরিকল্পিতভাবে গণতন্ত্র ধ্বংস করে দিয়েছে। আমরা যখনই কর্মসূচি দিচ্ছি, একই সময়ে তারা পাল্টা কর্মসূচি দিচ্ছে। তারা যে ভাষা ব্যবহার করছে সেটা সম্পূর্ণভাবে সন্ত্রাস করছে। একদিকে আওয়ামী লীগের সন্ত্রাস, অন্যদিকে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী, পুলিশের সন্ত্রাস। এর মাধ্যমে তারা আন্দোলন দমন করতে চায়। এর প্রতিবাদে ৪ ফেব্রুয়ারি সমাবেশ করবে বিএনপি।’

২০২০ সালের ২৭ জানুয়ারি জাপানের তৎকালীন প্রধানমন্ত্রীকে মির্জা ফখরুল চিঠি দিয়েছিলেন- পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীর এমন বক্তব্যের জবাবে বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘আমরা তো বহু লোককে চিঠি দিয়েছি, বহু দেশকে চিঠি দিয়েছি। অবশ্যই দিয়েছি। এটা তো অস্বীকার করিনি।

‘দেশে চলমান শাসন ব্যবস্থা, দেশের গণতন্ত্র ধ্বংস, মানুষের ওপর অত্যাচার-নির্যাতন, দুর্নীতি-লুটপাট, রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দকে গুম-খুন, প্রতি মুহূর্তে মানবাধিকার লঙ্ঘন করছে সরকার। এগুলা আমরা সারা পৃথিবীকে জানিয়েছি।’

সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান ডা. এ জেড এম এ জাহিদ হোসেন, আহমদ আজম খান, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আমান উল্লাহ আমান, আব্দুস সালাম, সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুস সালাম আজাদ, মীর সরাফত আলী সপু, রফিকুল আলম মজনু, আমিনুল হক প্রমুখ।

আরও পড়ুন:
গণফোরাম ও পিপলস পার্টিকে নিয়ে বিএনপির বৈঠক
খুলনায় সমাবেশ নিয়ে অনুমতির অপেক্ষায় বিএনপি
কে পালায় তা সবাই জানে: মির্জা ফখরুল
মরণযাত্রা না, আওয়ামী লীগের শোকযাত্রা: গয়েশ্বর
আন্দোলনের পরবর্তী সময় ও স্থান জানাল বিএনপি

মন্তব্য

প্রযুক্তি
I was hiding under stress Asif

মানসিক চাপে আত্মগোপনে ছিলাম: আসিফ

মানসিক চাপে আত্মগোপনে ছিলাম: আসিফ ব্রাহ্মণবাড়িয়া-২ আসনের স্বতন্ত্র প্রার্থী আবু আসিফ আহমেদ। ছবি: নিউজবাংলা
এক সময়কার বিএনপি নেতা আসিফ বলেন, নির্বাচনে নানা কারণে মানসিক চাপে ছিলাম। আর এই চাপ থেকে মুক্ত হতে নির্বাচন থেকে সরে গিয়েছিলাম। যেহেতু ২ ফেব্রুয়ারি নির্বাচন শেষ হয়েছে, তাই বাড়িতে ফিরে এসেছি।

মানসিক চাপের কারণেই ভোটের আগে আত্মগোপনে ছিলেন বলে জানিয়েছেন ব্রাহ্মণবাড়িয়া-২ আসনের স্বতন্ত্র প্রার্থী আবু আসিফ আহমেদ।

স্ত্রীকে সঙ্গে নিয়ে ঢাকা থেকে আশুগঞ্জে ফেরার পর বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় তিনি সাংবাদিকদের এমনটি জানান।

এক সময়কার বিএনপি নেতা আসিফ বলেন, নির্বাচনে নানা কারণে মানসিক চাপে ছিলাম। আর এই চাপ থেকে মুক্ত হতে নির্বাচন থেকে সরে গিয়েছিলাম। যেহেতু ২ ফেব্রুয়ারি নির্বাচন শেষ হয়েছে, তাই বাড়িতে ফিরে এসেছি।

আবু আসিফের স্ত্রী মেহেরুন্নিসা মেহরিন জানান, ভয়ের কারণে তার স্বামী আত্মগোপনে ছিলেন । তাই তিনি নিজের ফোনটিও নিয়ে যাননি।

এর আগে আবু আসিফ নিজের রাজধানীর বসুন্ধরার বাসায় অবস্থান করছিলেন বলে জানান পুলিশ। বৃহস্পতিবার দুপুরে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার পুলিশ সুপার মোহাম্মদ শাখাওয়াত হোসেন সাংবাদিকদের এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

পুলিশ সুপার জানান, আবু আসিফ আহমেদ নিখোঁজ থাকার বিষয়ে তার স্ত্রী থানায় সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেছিলেন। এ বিষয়ে খোঁজ নিতে আশুগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার (ওসি) সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি আসিফের সন্ধান পাওয়ার বিষয়টি তাকে নিশ্চিত করেন।

আরও পড়ুন:
ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় বিচারক বদলির আল্টিমেটামের সময় বাড়ালেন আইনজীবীরা
আশুগঞ্জে দুই পক্ষের সংঘর্ষে আহত ৩০
বিচারককে গালির ঘটনায় জড়িতদের শাস্তি দাবি নারী বিচারকদের
‘অন্নদা উৎসবে’ অংশ নেবে ২ হাজার সাবেক ছাত্র
পার্চিংয়ে কমছে খরচ, বাড়ছে ফলন

মন্তব্য

প্রযুক্তি
Silgala 20 thousand tons of rice stored in the godown

গোডাউনে মজুদ ২০ হাজার টন চাল, সিলগালা

গোডাউনে মজুদ ২০ হাজার টন চাল, সিলগালা বৃহস্পতিবার অভিযান চালিয়ে বাগেরহাটের ফকিরহাটে এএমএম জুট মিলের গোডাউন থেকে বিপুল চাল জব্দ করা হয়। ছবি: নিউজবাংলা
র‌্যাব-৬ খুলনার কোম্পানি কমান্ডার মো. বদরুদ্দৌজা বলেন, ‘গোপন সংবাদের ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে গুদামে মজুদ করা বিপুল পরিমাণ চাল পাওয়া যায়। এই চালগুলো অতিরিক্ত দামে বিক্রির জন্য সেখানে রাখা হয়েছিল।’

বাগেরহাটের ফকিরহাটে অতিরিক্ত মুনাফার জন্য মজুদ করা ২০ হাজার টন চাল জব্দ করেছে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্য্যাটালিয়ন (র‌্যাব)। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় উপজেলার লখপুর এলাকার এএমএম জুট মিলের গোডাউন থেকে এই চাল জব্দ করা হয়।

অবৈধ মজুদের অপরাধে গুদামের দায়িত্বে থাকা অলোক চক্রবর্ত্তী নামের এক ব্যক্তিকে ৫ হাজার টাকা জরিমানা করেছে ভ্রাম্যমাণ আদালত। সে সঙ্গে পরবর্তী নির্দেশনা না দেয়া পর্যন্ত গুদামটিকে সিলগালা করে দেয়া হয়েছে।

বাগেরহাট জেলা প্রশাসনের সহকারী কমিশনার রুবাইয়া বিনতে কাশেম ভ্রাম্যমাণ আদালতের বিচারক হিসেবে এই আদেশ দেন। এ সময় র‌্যাব-৬ খুলনার কোম্পানি কমান্ডার মো. বদরুদ্দৌজা, বাগেরহাট জেলা কৃষি বিপণন কর্মকর্তা সুজাত হোসেন খান, ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের সহকাঈ পরিচালক আব্দুল্লাহ আল ইমরানসহ স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিরা উপস্থিত ছিলেন।

গোডাউনে মজুদ ২০ হাজার টন চাল, সিলগালা
চাল জব্দ করার পর এএমএম জুটি মিলের গোডাউন সিলগালা করে দেয়া হয়। ছবি: নিউজবাংলা

র‌্যাব-৬ খুলনার কোম্পানি কমান্ডার মো. বদরুদ্দৌজা বলেন, ‘গোপন সংবাদের ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে গুদামে মজুদ করা বিপুল পরিমাণ চাল পাওয়া যায়। এই চালগুলো অতিরিক্ত দামে বিক্রির জন্য সেখানে রাখা হয়েছিল।’

তবে গুদামের দায়িত্বে থাকা অলোক চক্রবর্ত্তীর দাবি, জব্দ চালগুলো সরকারি গুদামে দেয়ার জন্য আমদানি করা হয়েছিল। কিন্তু চালগুলো নষ্ট হয়ে যাওয়ায় আর গুদামে দেয়া যায়নি। চালের পরিমাণ ১ হাজার ১৮৯ টন।’

জেলা কৃষি বিপনন কর্মকর্তা মো. সুজাত হোসেন খান বলেন, ‘খাদ্য অধিদপ্তরের চাহিদা অনুযায়ী এই চাল আমদানি করা হয়েছিল। কিন্তু পরবর্তীতে চালের মান খারাপ উল্লেখ করে চালগুলো আর সরকারি খাদ্য গুদামে দেয়নি চাল ব্যবসায়ী। আসলে এর মধ্যে মাত্র দুই-তিন বস্তা চাল খারাপ হতে পারে। বাকিগুলোর মান ভাল।

‘গুদামে ২০ হাজার টন চাল রয়েছে। জুট মিলে এত চাল থাকার কথা নয়। সব চাল ভালো থাকা সত্ত্বেও তারা নষ্ট বলে উল্লেখ করছে। মূলত অতিরিক্ত মুনাফার উদ্দেশ্যে এই বিপুল পরিমাণ চাল মজুদ করা হয়েছিল।’

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, চাল আমদানিকারক বৈধ কাগজপত্র ও খাদ্য বিভাগের নির্দেশনা নিয়ে জেলা প্রশাসকের কাছে আবেদন করবেন। জেলা প্রশাসক তার কাগজপত্র, চালের পরিমাণ, স্থানীয় সাক্ষীদের বক্তব্য ও সার্বিক পরিস্থিতি বিবেচনা করে সিদ্ধান্ত দেবেন। আপাতত গুদামটি সিলগালা থাকবে।’

আরও পড়ুন:
দেশি চাল প্লাস্টিকের ব্যাগে ভরলেই জব্দ
সরকারি গুদামে ধান-চাল দিচ্ছেন না মিল মালিকরা
জব্দ হওয়া ১১৩০ বস্তা চাল উধাওয়ের ঘটনায় মামলা
চাল-গমের দাম সহনীয় রাখতে এগিয়ে এলো বাংলাদেশ ব্যাংক
৬ প্রতিষ্ঠানকে চাল আমদানির অনুমতি দিতে চিঠি

মন্তব্য

p
উপরে