মস্তিষ্কে চিপ: ভিডিও গেম খেলছে বানর

মস্তিষ্কে নতুন প্রযুক্তির চিপ প্রতিস্থাপনের পর নিজ থেকেই ভিডিও গেম খেলছে মাকাক প্রজাতির বানর। ছবি: রয়টার্স

মস্তিষ্কে চিপ: ভিডিও গেম খেলছে বানর

নিউরোলিংকের প্রকাশ করা তিন মিনিটের ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে, একটি পুরুষ মাকাকের (ছোট প্রজাতির বানর) মস্তিষ্কের দুই পাশে চিপ এমবেড করা হয়েছে। এতে সে বসে বসে মাইন্ড পং গেম খেলতে পারছে।

বিশ্বের অন্যতম শীর্ষ ধনী ইলন মাস্কের ব্রেইন-চিপ স্টার্টআপ নিউরোলিংক শুক্রবার নতুন একটি ভিডিও প্রকাশ করেছে। সেখানে একটি বানরকে সাধারণ ভিডিও গেম খেলতে দেখা গেছে।

সেই বানরের মস্তিষ্কে চিপের মাধ্যমে নতুন প্রযুক্তি প্রতিস্থাপন করায় সে নিজেই গেমটি খেলতে পেরেছে।

নিউরোলিংকের প্রকাশ করা তিন মিনিটের ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে, একটি পুরুষ মাকাকের (ছোট প্রজাতির বানর) মস্তিষ্কের দুই পাশে চিপ এমবেড করা হয়েছে। এতে করে সে বসে বসে মাইন্ড পং গেম খেলতে পারছে।

বানরটিকে আগেই গেমের জয়স্টিক সরানোর প্রশিক্ষণ দেয়া হয়েছিল। সে খুব সহজেই প্যাডেল দিয়ে জয়স্টিক নিয়ন্ত্রণ করেছে। নিজ থেকে চিন্তা করে তার হাত উপরে ও নিচে নিয়েছে।

বৃহস্পতিবার এক টুইটে ইলন মাস্ক বলেন, ‘এটি প্রথম নিউরোলিংক পণ্য যা কোনো পক্ষাঘাতগ্রস্ত লোককে মনের সঙ্গে মিলিয়ে স্মার্টফোন ব্যবহারের সুবিধা দেবে। এটা হবে থাম্ব ব্যবহারের চেয়ে দ্রুতগতিতে।’

ভিডিওটিতে দেয়া ভয়েসওভারে বলা হয়, ‘নিউরোলিংক বানরের মোটর কর্টেক্স অঞ্চলে প্রতিস্থাপন করা দুই হাজারের বেশি ইলেক্ট্রোড ব্যবহার করে মস্তিষ্ক থেকে বৈদ্যুতিক সংকেত রেকর্ড ও ডিকোডের কাজ করে, যা তার হাত নাড়াতে সহায়তা করে।’

২০১৬ সালে প্রতিষ্ঠিত নিউরোলিংকের সহপ্রতিষ্ঠাতা ইলন মাস্ক। সানফ্রান্সিসকোভিত্তিক প্রতিষ্ঠানটির লক্ষ্য আলঝেইমার, স্মৃতিবিভ্রম ও মেরুদণ্ডের জখমে ভোগা রোগীদের সহায়তা করতে ব্রেনে ওয়্যারলেস চিপ প্রতিস্থাপন করা।

এটি কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তাকে ব্যবহার করে মানুষের কল্যাণে কাজ করবে। প্রযুক্তিটি এখনও প্রাথমিক পর্যায়ে রয়েছে।

২০২০ সালের আগস্টে মাস্ক একটি শূকরছানার মস্তিষ্কে চিপ প্রতিস্থাপনের কথা জানান।

তার আগের বছর নিউরোলিংকের নতুন এক ডিজাইন দেখানো হয়, যেখানে মস্তিষ্কে ক্ষুদ্র ইলেক্ট্রোড ‘থ্রেড’ প্রতিস্থাপন ও কানের পিছনে একটি ডিভাইস স্থাপন করা হয়।

প্রযুক্তিটির উন্নয়নে ইলন মাস্ক উচ্চতর বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের বিশেষজ্ঞ, প্রযুক্তি বিশেষজ্ঞ, বিজ্ঞানীদের কাজে লাগানোর কথা জানিয়েছেন।

নিউরোলিংকের উন্নয়নে টেসলা, স্পেসএক্সের বিশেষজ্ঞদেরও কাজে লাগানোর কথা জানান এ উদ্যোক্তা।

আরও পড়ুন:
ইলন মাস্কের বিরুদ্ধে টেসলার শেয়ারহোল্ডারের মামলা
কার্বন ক্যাপচার উদ্ভাবনে ১০ কোটি ডলার দেবেন ইলন মাস্ক

শেয়ার করুন

মন্তব্য

সুবিধাবঞ্চিতদের খাবার, ঈদ সামগ্রী দিল শাওমি

সুবিধাবঞ্চিতদের খাবার, ঈদ সামগ্রী দিল শাওমি

সুবিধাবঞ্চিত ৫০০ পরিবারকে সহায়তা দিয়েছে শাওমি বাংলাদেশ

‘ঈদ খুশি’ নামের এই আয়োজনে প্রতিষ্ঠানটি সুবিধাবঞ্চিত ৫০০ পরিবারকে সাত দিনের খাবার ও ঈদসামগ্রী দিয়েছে। শাওমির এই উদ্যোগের সহায়তা করছে দেশের অন্যতম কমিউনিটি সংগঠন জাগো ফাউন্ডেশন।

করোনাভাইরাস সংক্রমণ ঠেকাতে চলমান সরকারি কঠোর বিধিনিষেধ বা লকডাউন ও পবিত্র রমজান মাসে সুবিধাবঞ্চিত পরিবারের মধ্যে খাদ্য সহায়তা দিয়েছে প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান শাওমি।

‘ঈদ খুশি’ নামের এই আয়োজনে প্রতিষ্ঠানটি সুবিধাবঞ্চিত ৫০০ পরিবারকে সাত দিনের খাবার ও ঈদসামগ্রী দিয়েছে। শাওমির এই উদ্যোগের সহায়তা করছে দেশের অন্যতম কমিউনিটি সংগঠন জাগো ফাউন্ডেশন।

শাওমি বাংলাদেশের কান্ট্রি জেনারেল ম্যানেজার জিয়াউদ্দিন চৌধুরী বলেন, ‘করোনাভাইরাস মহামারি আমাদের স্বাভাবিক জীবনযাত্রাকে ব্যাপকভাবে বিঘ্নিত করেছে।

‘প্রতিকূল পরিস্থিতিতে আমরা শাওমি থেকে এই ঈদে সুবিধাবঞ্চিত ৫০০ পরিবারকে সহায়তায় খাবার ও প্রয়োজনীয় পণ্য পৌঁছে দিচ্ছি। এই পরিবারগুলোর মাঝে ঈদের খুশি ও কিছু নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্য আমরা পৌঁছে দিচ্ছি জাগো ফাউন্ডেশনের মাধ্যমে।’

জাগো ফাউন্ডেশন দেশের সুপরিচিত কমিউনিটি সংগঠন, যারা যুব ক্ষমতায়নসহ নানা মানবিক উদ্যোগ নিয়ে কাজ করছে। এই কার্যক্রমে দেশব্যাপী ছড়িয়ে থাকা জাগো ফাউন্ডেশনের স্বেচ্ছাসেবকদের দিয়ে রমজানে এই সহায়তা দিচ্ছে সংগঠনটি।

বাংলাদেশসহ বিশ্বের বিভিন্ন ক্ষতিগ্রস্ত অঞ্চলে এর আগেও শাওমি চিকিৎসা সরঞ্জাম সরবরাহ করেছে। গত বছর বাংলাদেশে প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিলে ২০ লাখ টাকাসহ ৪০ লাখ টাকা বিভিন্ন সহায়তায় প্রদান করেছে শাওমি।

আরও পড়ুন:
ইলন মাস্কের বিরুদ্ধে টেসলার শেয়ারহোল্ডারের মামলা
কার্বন ক্যাপচার উদ্ভাবনে ১০ কোটি ডলার দেবেন ইলন মাস্ক

শেয়ার করুন

সবচেয়ে শক্তিশালী চিপ তৈরি করল আইবিএম

সবচেয়ে শক্তিশালী চিপ তৈরি করল আইবিএম

২-ন্যানোমিটার প্রযুক্তির চিপ হাতে আইবিএমের এক কর্মী। ছবি: সিএনএন

নতুন এই চিপ বাজারে থাকা ৭-ন্যানোমিটার চিপের চেয়ে ৪৫ শতাংশ বেশি শক্তিশালী বলে দাবি করেছে আইবিএম। এ ছাড়া এটি ডিভাইসের ৭৫ শতাংশ কম শক্তি খরচ কমিয়ে দেবে বলেও বলছে প্রতিষ্ঠানটি। এটি ব্যবহারে স্মার্টফোন আগের চেয়ে চারগুণ বেশি ব্যাটারি শক্তি ধরে রাখতে পারবে। ল্যাপটপ হবে আরও গতিশীল।

সবচেয়ে ছোট ও শক্তিশালী চিপ তৈরির কথা জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক বহুজাতিক প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান আইবিএম।

প্রতিষ্ঠানটি বৃহস্পতিবার ঘোষণা দিয়েছে, তারা ২-ন্যানোমিটার প্রযুক্তির চিপ তৈরি করেছে। এখন পর্যন্ত যত চিপ বাজারে এসেছে সেগুলোর চেয়ে তাদের তৈরি চিপটি আকারে ছোট এবং শক্তিশালী।

বর্তমানে কম্পিউটারে সবচেয়ে শক্তিশালী চিপ হিসেবে যেগুলো সবচেয়ে বেশি ব্যবহার হচ্ছে তা হলো, ১০-ন্যানোমিটার ও ৭-ন্যানোমিটার প্রযুক্তির। কিছু প্রতিষ্ঠান অবশ্য ৫-ন্যানোমিটারের চিপ ব্যবহার করছে।

সিএনএনের এক প্রতিবেদনে বলা হয়, বর্তমানে বাজারে থাকা যেকোনো প্রসেসরের চেয়ে এই চিপ অধিক পরিমাণ শক্তিশালী। ২-ন্যানোমিটার চিপ প্রযুক্তির ফলে আরও বেশি সময় স্মার্টফোন বা কম্পিউটারে ব্যাটারি শক্তি ধরে রাখা সম্ভব হবে। সেই সঙ্গে ডিভাইস হবে আরও গতিশীল।

প্রযুক্তির অগ্রগতিতে এটাকে একটা ‘ব্রেকথ্রু’ হিসেবে তুলে ধরেছেন আইবিএমের গবেষক ডারিও গিল। তিনি বলেন, ‘এটি একটি উদাহরণ তৈরি করল।’

প্রসেসরের কর্মদক্ষতা নির্ধারণ করে এর ভিতরে থাকা ট্রানজিস্টার। এটি ডেটাকে প্রক্রিয়াজাত করে। তবে এটা করতে হবে এর আকার ছোট রেখেই।

আইবিএমের হাইব্রিড ক্লাউড রিসার্চের ভাইস প্রেসিডেন্ট মুকেশ খের জানান, নতুন এই ২-ন্যানোমিটার চিপটির আকার হাতের একটি নখের সমান, যাতে আছে ৫০০ বিলিয়ন ট্রানজিস্টার। এই ট্রানজিস্টারগুলোর একেকটার আকার একটি করে ডিএনএর সমান।

আরও ট্রানজিস্টার সুবিধা পাওয়া যাবে এতে থাকা কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার সাহায্যে।

নতুন চিপ ব্যবহার শুরু হলে প্রযুক্তি উদ্ভাবনে আরও অগ্রগতি আসবে বলে মনে করেন গিল। তিনি বলেন, ‘এটি ব্যবহার করার সময় আমরা দেখেছি স্মার্টফোনের গতি বেড়ে যায়, গাড়ি আরও বেশি স্মার্ট হয়ে ওঠে, কম্পিউটার আরও শক্তিশালী হয়।’

নতুন এই চিপ বাজারে থাকা ৭-ন্যানোমিটার চিপের চেয়ে ৪৫ শতাংশ বেশি শক্তিশালী বলে দাবি করেছে আইবিএম। এ ছাড়া এটি ডিভাইসের ৭৫ শতাংশ কম শক্তি খরচ কমিয়ে দেবে বলেও বলছে প্রতিষ্ঠানটি।

এটি ব্যবহারে স্মার্টফোন আগের চেয়ে চারগুণ বেশি ব্যাটারি শক্তি ধরে রাখতে পারবে। ল্যাপটপ হবে আরও গতিশীল।

চিপটি কবে বাজারে আসবে সে সম্পর্কে নির্দিষ্ট করে কিছু জানায়নি আইবিএম। তবে এটি ২০২৪ বা ২০২৫ সালের দিকে উৎপাদন শুরু হতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

আইবিএমের নতুন চিপ তৈরির ঘোষণাটি এলো এমন এক সময়, যখন বিশ্ববাজারে চিপ সংকটের মধ্যে বাইডেন প্রশাসন সেমিকন্ডাক্টার শিল্পে স্থানীয়ভাবে গবেষণা, উন্নয়ন এবং উৎপাদনে জোর দেয়ার কথা জানিয়েছে তখন। এই শিল্প খাতে বাইডেন প্রশাসন ৫০ বিলিয়ন ডলার বিনিয়োগের ছাড় দেয়ার ঘোষণাও দিয়েছে।

আরও পড়ুন:
ইলন মাস্কের বিরুদ্ধে টেসলার শেয়ারহোল্ডারের মামলা
কার্বন ক্যাপচার উদ্ভাবনে ১০ কোটি ডলার দেবেন ইলন মাস্ক

শেয়ার করুন

ঈদ বাজারে ২০ হাজার টাকার মধ্যে শাওমির যত ফোন

ঈদ বাজারে ২০ হাজার টাকার মধ্যে শাওমির যত ফোন

ঈদ বাজার সামনে রেখে মধ্যম বাজেট বা ২০ হাজার টাকার মধ্যে যারা স্মার্টফোন কিনতে চান তাদের জন্য শাওমির রয়েছে কয়েকটি মডেলের স্মার্টফোন।

চীনা বহুজাতিক প্রতিষ্ঠান শাওমি দেশের বাজারে বিভিন্ন শ্রেণির ক্রেতাকে লক্ষ্য করে হ্যান্ডসেট এনেছে। প্রতিষ্ঠানটি বলছে, শাওমি সব শ্রেণি-পেশার মানুষকে প্রযুক্তি ব্যবহারের সুফল দিতে স্বল্প ও মাঝারি বাজেটে উন্নত কনফিগারেশন স্মার্টফোন আনে।

ঈদ বাজার সামনে রেখে মধ্যম বাজেট বা ২০ হাজার টাকার মধ্যে যারা স্মার্টফোন কিনতে চান, তাদের জন্য শাওমির রয়েছে কয়েকটি মডেলের স্মার্টফোন।

রেডমি নোট ১০

দেশের বাজারে সবশেষ উন্মোচন করা ফোন রেডমি নোট ১০। বাজেটের মধ্যে যারা ভালো কনফিগারেশনের ফোন খুঁজছেন তাদের জন্য আদর্শ হতে পারে ডিভাইসটি। এতে আছে ৪৮ মেগাপিক্সেলের সনির আইএমএক্স৫৮২ সেন্সরের সঙ্গে কোয়াড ক্যামেরা। ৫০০০ এমএএইচ ব্যাটারির সঙ্গে ডিভাইসটির বক্সে আছে ৩৩ ওয়াটের চার্জার। ফোনটির ৪জিবি+৬৪জিবি সংস্করণের দাম ১৯ হাজার ৯৯৯ টাকা। অন্য সংস্করণগুলোর দাম ২০ হাজার টাকা রেঞ্জের বেশি।

রেডমি নোট ৯

বাজেটের মধ্যে ফটোগ্রাফি প্রাধান্য পেয়েছে রেডমি নোট ৯ মডেলে। ফোনটিতে রয়েছে ৪৮ মেগাপিক্সেলের কোয়াড ক্যামেরা। এ ছাড়া ফোনের সামনে ৬.৫৩ ইঞ্চির পাঞ্চহোল ডিসপ্লেতে থাকছে ১৩ মেগাপিক্সেলের সেলফি ক্যামেরা।

রেডমি নোট ৯ ফোনে ৫০২০ এমএএইচের বিশাল ব্যাটারিকে চার্জ করতে বক্সে দেয়া রয়েছে ২২ ওয়াট এর ফাস্ট চার্জার। ফোনটিতে ব্যবহার করা হয়েছে মিডিয়াটেক হেলিও জি৮৫ প্রসেসর। ফোনটির দুটি সংস্করণ দেশে পাওয়া যাচ্ছে। ৪+৬৪ জিবির দাম ১৮ হাজার ৯৯০ টাকা এবং ৪+১২৮ জিবি ১৯ হাজার ৯৯৯ টাকা।

রেডমি ৯

রেডমি ৯ স্মার্টফোনে বড় আকারের ৬.৫৩ ইঞ্চি এফএইচডি প্লাস ডট ড্রপ ডিসপ্লে রয়েছে। সুরক্ষার জন্য ফোনটিতে ব্যবহার করা হয়েছে টিইউভি রাইনল্যান্ড ব্লু লাইট সার্টিফিকেশন এবং কর্নিং গরিলা গ্লাস প্রযুক্তি। কোয়াড ক্যামেরার ফোনটিতে রয়েছে একটি ১৩ মেগাপিক্সেল ওয়াইড-অ্যাঙ্গেল ক্যামেরা, ৮ মেগাপিক্সেল আল্ট্রা-ওয়াইড অ্যাঙ্গেল ক্যামেরা, ১১৮ ডিগ্রি এফওভি; ৫ ম্যাক্রো ও ২ মেগাপিক্সেল ডেফথ সেন্সর। সামনে রয়েছে ৮ মেগাপিক্সেল সেলফি ক্যামেরা।

মিডিয়াটেক হেলিও জি৮০ এসওসি প্রসেসরের ফোনটিতে আছে শক্তিশালী ৫০২০ এমএএইচের ব্যাটারি। ১৮ ওয়াটের ফাস্ট চার্জিং প্রযুক্তি রয়েছে, ফলে গেইম খেলতে চাইলে অল্প সময়ের মধ্যেই চার্জ করে নেয়া যায় ডিভাইসটি। ৪+৬৪ জিবি সংস্করণের দাম ১৪ হাজার ৯৯৯ টাকা এবং ৩+৩২ জিবির দাম ১৩ হাজার ৯৯৯ টাকা।

রেডমি ৯ পাওয়ার

রেডমি ৯ পাওয়ার ফোনে রয়েছে অঁরা পাওয়ার ডিজাইনের ৬.৫৩ ইঞ্চির ফুল এইচডিপ্লাস ডিসপ্লে। ডিভাইসটিতে আছে ৪৮ মেগাপিক্সেলের কোয়াড ক্যামেরা সেটআপ। যার প্রাথমিক ক্যামেরা ৪৮ মেগাপিক্সেল, একটি ৮ মেগাপিক্সেলের আলট্রা ওয়াইড, ২ মেগাপিক্সেলের ম্যাক্রো ও একটি ২ মেগাপিক্সেলের ডেফথ সেন্সর রয়েছে। রয়েছে ৮ মেগাপিক্সেলের ফ্রন্ট ক্যামেরা।

বড় মাপের ৬০০০ এমএএইচ ব্যাটারির সঙ্গে আছে ১৮ ওয়াটের ফাস্ট চার্জিং। ডিভাইসটিতে আছে কোয়ালকমের স্ন্যাপড্রাগন ৬৬২ চিপসেট। গেইমিংয়ের জন্য রয়েছে অ্যাড্রেনো ৬১০ এবং ভিভিড গ্রাফিক। ফোনটির ৪+৬৪ জিবির দাম ১৫ হাজার ৯৯৯ টাকা, ৪+১২৮ জিবির দাম ১৭ হাজার ৯৯৯ টাকা এবং ৬+১২৮জিবি ১৮ হাজার ৯৯৯ টাকা।

রেডমি ৯এ

স্মার্টফোনটিতে আছে ৬.৫৩ ইঞ্চির ডট ড্রপ ডিসপ্লে। ৫০০০ মিলি অ্যাম্পিয়ার শক্তিশালী ব্যাটারি। মিডিয়াটেক হেলিও জি২৫ অক্টা-কোর গেমিং চিপসেট। এআই-অপ্টিমাইজড ১৩ মেগাপিক্সেলের রিয়ার ক্যামেরা। ২+৩২ জিবি স্টোরেজের ফোনটির দাম ৯ হাজার ৯৯৯ টাকা।

আরও পড়ুন:
ইলন মাস্কের বিরুদ্ধে টেসলার শেয়ারহোল্ডারের মামলা
কার্বন ক্যাপচার উদ্ভাবনে ১০ কোটি ডলার দেবেন ইলন মাস্ক

শেয়ার করুন

চতুর্থ চেষ্টায় সফল অবতরণ স্পেসএক্স রকেটের

চতুর্থ চেষ্টায় সফল অবতরণ স্পেসএক্স রকেটের

উড্ডয়নের পর সফলভাবে অবতরণ করেছে স্পেসএক্সের স্টারশিপ রকেট। ছবি: এএফপি

মাটি স্পর্শের পর ভাষ্যকার জন ইনস্পাকার ঘোষণা করেন, স্টারশিপ সফলভাবে অবতরণ করেছে বলে নিশ্চিত করেছে স্টারবেজ ফ্লাইট নিয়ন্ত্রণ কক্ষ।

পরপর তিনবার বিস্ফোরণের পর সফলভাবে অবতরণ করেছে যুক্তরাষ্ট্রের মহাকাশযান প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠান স্পেসএক্সের প্রোটোটাইপ স্টারশিপ রকেট।

চতুর্থবারের চেষ্টায় রকেটটি বুধবার স্পেসএক্সের টেক্সাস ঘাঁটিতে অবতরণ করে।

মাটি স্পর্শের পর ভাষ্যকার জন ইনস্পাকার ঘোষণা করেন, স্টারশিপ সফলভাবে অবতরণ করেছে বলে নিশ্চিত করেছে স্টারবেজ ফ্লাইট নিয়ন্ত্রণ কক্ষ।

স্পেসএক্সের সর্বাধুনিক প্রযুক্তির স্টেইনলেস স্টিলের রকেট স্টারশিপ, যা এসএন১৫ নামে পরিচিত। অবতরণের আগে মেক্সিকো উপসাগরের ১০ কিলোমিটার উপরে থাকা অবস্থায় এটি উল্টে যায়। পরে রকেটটি আড়াআড়িভাবে ছয় মিনিট চলে। ঘাঁটিতে অবতরণের আগে এটি লম্বালম্বি অবস্থায় ফিরে আসে।

৫০ মিটার লম্বা রকেটটি যখন ঘাঁটি স্পর্শ করে তখন নিচের দিকে একটু আগুন দেখা যায়।

ভাষ্যকার জন বলেন, স্পেসএক্স জ্বালানি হিসেবে যে মিথেন গ্যাস ব্যবহার করে তার জন্য সামান্য আগুন দেখা যাওয়াটা স্বাভাবিক ছিল। এখন প্রকৌশলীরা এর বিভিন্ন ডিজাইন ইস্যুগুলো নিয়ে কাজ করছেন।

সফলভাবে স্টারশিপ রকেটের অবতরণকে ‘অভাবনীয়’ বলে এক টুইটবার্তায় উল্লেখ করেছেন স্পেসএক্সের প্রতিষ্ঠাতা ও বিশ্বের অন্যতম শীর্ষ ধনী ইলন মাস্ক।

নভোচারীদের চাঁদে পৌঁছে দিতে গত মাসে নাসা ৩০০ কোটি ডলারের একটি চুক্তি করেছে স্পেসএক্সর সঙ্গে।

অবশ্য স্পেসএক্সের সঙ্গে চুক্তির বিরোধিতা করেছে কাজ না পাওয়া জেফ বেজোসের প্রতিষ্ঠান ব্লু অরিজিন ও ডিনামাইটস।

আরও পড়ুন:
ইলন মাস্কের বিরুদ্ধে টেসলার শেয়ারহোল্ডারের মামলা
কার্বন ক্যাপচার উদ্ভাবনে ১০ কোটি ডলার দেবেন ইলন মাস্ক

শেয়ার করুন

ট্রাম্পকে ফেসবুকের শাস্তি ‘বিধিবহির্ভূত’

ট্রাম্পকে ফেসবুকের শাস্তি ‘বিধিবহির্ভূত’

ওভারসাইট বোর্ড জানায়, ট্রাম্পকে স্থায়ীভাবে নিষিদ্ধের তাৎক্ষণিক সিদ্ধান্ত প্রতিষ্ঠানটির বিধিবহির্ভূত ছিল। অন্য ব্যবহারকারীদের বিরুদ্ধে এসব ক্ষেত্রে ফেসবুক যা যা পদক্ষেপ সাধারণত নিয়ে থাকে, তেমনটাই ট্রাম্পের ক্ষেত্রেও নেয়া উচিত ছিল।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে তিন মাসের বেশি সময় ধরে নিষিদ্ধ যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্প। সে নিষেধাজ্ঞা আপাতত বহালই থাকছে। তবে স্থায়ী নিষেধাজ্ঞার বিষয়টি পুনর্বিবেচনার আদেশ দিয়েছে ফেসবুকের ওভারসাইট বোর্ড।

বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়, ফেসবুক ও ফেসবুকের মালিকানাধীন ছবি ও সংক্ষিপ্ত ভিডিও শেয়ারিং প্ল্যাটফর্ম ইনস্টাগ্রামে ট্রাম্পের ওপর নিষেধাজ্ঞা বহাল থাকছে। কিন্তু প্রতিষ্ঠানটির সাধারণ শাস্তিমূলক ব্যবস্থার বাইরে গিয়ে স্থায়ী নিষেধাজ্ঞা আরোপের সমালোচনা করেছে বোর্ড।

ফেসবুককে এ সিদ্ধান্ত পুনর্বিবেচনা এবং সাধারণ ব্যবহারকারী থেকে শুরু করে প্রত্যেকের জন্য প্রযোজ্য ব্যবস্থা নেয়ার নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

ক্যাপিটল হিলে সহিংসতা উস্কে দেয়ার অভিযোগে গত জানুয়ারিতে ট্রাম্পকে নিজেদের দুই প্ল্যাটফর্মে নিষিদ্ধ করে ফেসবুক।

ওভারসাইট বোর্ড জানায়, ট্রাম্পকে স্থায়ীভাবে নিষিদ্ধের তাৎক্ষণিক সিদ্ধান্ত প্রতিষ্ঠানটির বিধিবহির্ভূত ছিল। অন্য ব্যবহারকারীদের বিরুদ্ধে এসব ক্ষেত্রে ফেসবুক যা যা পদক্ষেপ সাধারণত নিয়ে থাকে, তেমনটাই ট্রাম্পের ক্ষেত্রেও নেয়া উচিত ছিল।

এ বিষয়ে পরবর্তী পদক্ষেপ নিতে ফেসবুককে ছয় মাসের সময় বেঁধে দেয়া হয়েছে।

প্রতিক্রিয়ায় ফেসবুক কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, বোর্ডের সিদ্ধান্ত বিবেচনা করে পরবর্তী পদক্ষেপ নেবে প্রতিষ্ঠানটি।

বিধিমালা উন্নয়নে ফেসবুককে বেশ কিছু পরামর্শও দিয়েছে ওভারসাইট বোর্ড।

সাম্প্রদায়িকতা ছড়ানোর অভিযোগে এবং ২০২০ সালের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ভোট জালিয়াতির প্রমাণবিহীন অভিযোগ তুলে টুইটারেও নিষিদ্ধ হন ট্রাম্প।

সমর্থকদের সঙ্গে চিন্তাভাবনা ভাগাভাগি করতে গত মঙ্গলবার নিজের একটি নতুন ওয়েবসাইট চালু করেছেন তিনি।

আরও পড়ুন:
ইলন মাস্কের বিরুদ্ধে টেসলার শেয়ারহোল্ডারের মামলা
কার্বন ক্যাপচার উদ্ভাবনে ১০ কোটি ডলার দেবেন ইলন মাস্ক

শেয়ার করুন

দেশে বছরে ১৩ মিলিয়ন ডলারের ক্লাউড ব্যবসা: পলক

দেশে বছরে ১৩ মিলিয়ন ডলারের ক্লাউড ব্যবসা: পলক

আইসিটি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক

পলক বলেন, 'সাম্প্রতিক পরিসংখ্যান অনুযায়ী দেশে প্রতি বছর প্রায় ১৩ মিলিয়ন ডলারের ক্লাউড বেইজড ব্যবসা হচ্ছে। আগামী ৩-৫ বছরের মধ্যে ক্লাউড বেইজড ব্যবসার পরিধি আরও ২০-২৫ শতাংশ বৃদ্ধি পাবে। গ্লোবাল ফ্রিল্যান্স মার্কেটে এটি প্রায় ১.৮ মিলিয়ন ডলারের ক্লাউড পরিষেবার সুযোগ আছে।’

দেশে বর্তমানে ১৩ মিলিয়ন ডলারের ক্লাউড ব্যবসা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক।

সাম্প্রতিক এক পরিসংখ্যানের তথ্য তুলে ধরে এই হিসাব দেন তিনি।

বাংলাদেশ হইটেক পার্ক কর্তৃপক্ষ ও কর্পোরেট প্রযুক্তি লিমিটেড যৌথভাবে বিনা মূল্যে মাইক্রোসফট ক্লাউড স্কিল প্রশিক্ষণ কার্যক্রমের উদ্বোধনে ভার্চুয়াল অনুষ্ঠানে মঙ্গলবার এ কথা জানান তিনি।

দেশে এই কার্যক্রমের আওতায় পাঁচ হাজার তরুণ-তরুণী ও আইটি প্রফেশনালদের মাইক্রোসফটের ক্লাউড স্কিলের ওপর প্রশিক্ষণ দেয়া হবে।

আইসিটি প্রতিমন্ত্রী বলেন, সাম্প্রতিক পরিসংখ্যান অনুযায়ী দেশে প্রতি বছর প্রায় ১৩ মিলিয়ন ডলারের ক্লাউড বেইজড ব্যবসা হচ্ছে। আগামী ৩-৫ বছরের মধ্যে ক্লাউড বেইজড ব্যবসার পরিধি আরও ২০-২৫ শতাংশ বৃদ্ধি পাবে।

‘গ্লোবাল ফ্রিল্যান্স মার্কেটে এটি প্রায় ১.৮ মিলিয়ন ডলারের ক্লাউড পরিষেবার সুযোগ আছে।’

তিনি বলেন, ‘যে সকল দেশীয় প্রতিষ্ঠান মাইক্রোসফটের ক্লাউড সল্যুশন ব্যবহার করছে, তারা চাকরির ক্ষেত্রে প্রফেশনাল ভেন্ডর সার্টিফিকেট ডিমান্ড করে। ক্লাউড বেইজড সার্ভিস খাতে দেশে প্রায় ১০ হাজার প্রফেশনাল কাজ করছেন এবং আগামী ৩-৫ বছরের মধ্যে এই খাতে আরও ১০ হাজার জন প্রফেশনাল এক্সপার্টের কাজের সুযোগ সৃষ্টি হবে।’

ভবিষ্যতে মাইক্রোসফটের পাশাপাশি গুগল, আমাজনের মতো প্রতিষ্ঠানগুলোতে দেশের জনশক্তি রপ্তানি করা যাবে বলেও জানান তিনি।

সভাপতির বক্তব্যে বাংলাদেশ হাইটেক পার্ক কর্তৃপক্ষের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (সচিব) হোসনে আরা বেগম বলেন, ‘প্রযুক্তিভিত্তিক শিল্পায়ন এবং তার বিকাশে সরকারি ও বেসরকারিভাবে গড়ে ওঠা হাইটেক পার্ক, সফটওয়্যার টেকনোলজি পার্কগুলোতে সৃষ্ট ও সম্ভাব্য কর্মসংস্থান বিবেচনায় প্রশিক্ষিত দক্ষ জনশক্তির জোগান নিশ্চিত করতে এই প্রশিক্ষণ কার্যক্রম শুরু করা।

‘মাইক্রোসফট ক্লাউড স্কিল ট্রেনিংয়ের উদ্দেশ্য হলো, দেশের তরুণরা যেন এখন থেকেই নতুন নতুন টেকনোলজি নিয়ে কাজ করতে পারে। চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় নিজেদের প্রস্তুত করতে পারে।’

মাইক্রোসফট বাংলাদেশের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আফিফ মোহাম্মদ আলী বলেন, ‘হাইটেক পার্ক কর্তৃপক্ষ ও কর্পোরেট প্রযুক্তি লিমিটেডের যৌথ উদ্যোগে আয়োজিত প্রশিক্ষণ আয়োজনে মাইক্রোসফটের বিশেষায়িত প্ল্যাটফর্মগুলো সম্পর্কে প্রশিক্ষণার্থীদের মাইক্রোসফট আজুরে, মাইক্রোসফট সার্ভার, মডার্ন ওয়ার্কপ্লেসের মতো বিশেষায়িত ডোমেইনগুলোতে দক্ষতা গড়ে তুলতে সহায়তা করবে।’

প্রশিক্ষণ শেষে উত্তীর্ণ অংশগ্রহণকারীদের মাইক্রোসফটের পক্ষ থেকে ১০০ ডলারের ক্লাউড ক্রেডিট এবং ভেন্ডর সার্টিফিকেট এক্সামে ২০ শতাংশ ওয়েভার দেয়ার কথা জানান তিনি।

কর্পোরেট প্রযুক্তি লিমিটেডের প্রধান নির্বাহী পরিচালক শফিকুল আহম্মেদ সাগর বলেন, ‘দেশকে সামনে এগিয়ে নিতে হলে সমন্বিতভাবে কাজ করতে হবে। উন্নত বিশ্বের সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলতে হলে তরুণদের আধুনিক প্রযুক্তি সম্পর্কে ধারণা দিতে হবে।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন ডেভেলপার রিলেশন মাইক্রোসফট এশিয়া প্যাসিফিকের ডিরেক্টর এনি ম্যাথিউ; বাংলাদেশ হাইটেক পার্ক কর্তৃপক্ষের পরিচালক এ এন এম সফিকুল ইসলাম; আল আরাফা ইসলামী ব্যাংক লিমিটেডের ডেপুটি ম্যানেজিং ডিরেক্টর সৈয়দ মাসুদুল বারী, বেসিসের প্রেসিডেন্ট সৈয়দ আলমাস কবীর প্রমুখ।

আরও পড়ুন:
ইলন মাস্কের বিরুদ্ধে টেসলার শেয়ারহোল্ডারের মামলা
কার্বন ক্যাপচার উদ্ভাবনে ১০ কোটি ডলার দেবেন ইলন মাস্ক

শেয়ার করুন

গুগলের সাবেক বিজ্ঞানীকে নিয়োগ দিল অ্যাপল

গুগলের সাবেক বিজ্ঞানীকে নিয়োগ দিল অ্যাপল

অ্যাপল সংশ্লিষ্ট দুটি সূত্র জানিয়েছে, প্রতিষ্ঠানটির মেশিন লার্নিং ও এআই কৌশলের জ্যেষ্ঠ ভাইস প্রেসিডেন্ট জন জ্ঞানেন্দ্রর অধীনে প্রতিষ্ঠানটির নতুন এআই গবেষণা ইউনিটকে নেতৃত্ব দেয়ার কথা বেনজিওর।

যুক্তরাষ্ট্রের বহুজাতিক প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান গুগলের সাবেক বিজ্ঞানী স্যামি বেনজিওকে নিয়োগ দিয়েছে আরেক টেক জায়ান্ট অ্যাপল।

স্থানীয় সময় সোমবার অ্যাপলের পক্ষ থেকে বিষয়টি নিশ্চিত করা হয় বলে রয়টার্সের প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে।

গুগলের কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তাবিষয়ক (এআই) গবেষণা বিভাগের দুই সহকর্মীকে ছাঁটাইয়ের প্রতিবাদে পদত্যাগ করেছিলেন বেনজিও।

অ্যাপল সংশ্লিষ্ট দুটি সূত্র জানিয়েছে, প্রতিষ্ঠানটির মেশিন লার্নিং ও এআই কৌশলের জ্যেষ্ঠ ভাইস প্রেসিডেন্ট জন জ্ঞানেন্দ্রর অধীনে প্রতিষ্ঠানটির নতুন এআই গবেষণা ইউনিটকে নেতৃত্ব দেয়ার কথা বেনজিওর।

টানা প্রায় আট বছর গুগলে ছিলেন জ্ঞানেন্দ্র। ২০১৮ সালে অ্যাপলে যোগ দেন তিনি।

অ্যাপলে বেনজিওর ভূমিকা কী হবে, তা নিয়ে মন্তব্য করতে রাজি হয়নি অ্যাপল। প্রতিষ্ঠানটিতে সদ্য যোগ দিতে যাওয়া বেনজিও এ বিষয়ে মুখ খোলেননি।

১৪ বছর গুগলে কাজ করার পর গত সপ্তাহে প্রতিষ্ঠানটি থেকে সরে দাঁড়ান বেনজিও। গত মাসে রোমাঞ্চকর কাজের সন্ধান করছেন বলে জানিয়েছিলেন আলোচিত এ বিজ্ঞানী।

গত কয়েক মাসে নিজেদের দুই কর্মীকে বরখাস্ত করে গুগল। তাদের একজন মারগারেট মিশেল। তার বিরুদ্ধে প্রতিষ্ঠানের গুরুত্বপূর্ণ নথি বাইরে স্থানান্তরের অভিযোগ এনেছিল সার্চ জায়ান্টটি।

অন্যজন হলেন কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তাবিষয়ক গবেষক টিমনিত গেবরু। কৃষ্ণাঙ্গ এ নারীর দাবি, অ্যাকাডেমিক গবেষণাপত্রের সহ-লেখক হিসেবে কাজ করেছিলেন তিনি। ওই গবেষণাপত্রের জন্য তাকে বরখাস্ত করা হয়।

গবেষণাপত্রটিতে জেন্ডার ও সংখ্যালঘুদের প্রতি পক্ষপাতের বিষয় ছিল। এতে নারী ও জাতিগত সংখ্যালঘুদের বিরুদ্ধে কাঠামোগত পক্ষপাতসহ কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার ভাষার মডেল নিয়ে কথা বলেছিলেন টিমনিত। গুগলের নির্দেশে ওই গবেষণাপত্র প্রত্যাহার না করায় তাকে বহিষ্কার করে প্রতিষ্ঠানটি।

দুই সহকর্মীকে ছাঁটাইয়ের প্রতিবাদে পদত্যাগের সিদ্ধান্ত নেন বেনজিও।

কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার ক্ষেত্রে নৈতিকতার বিষয়ে গবেষণা দলের দায়িত্বে ছিলেন মিশেল ও টিমনিত। গুগলের কর্মপরিবেশের বৈচিত্র্য নিয়েও উদ্বেগ জানান তারা। দুজনের প্রতিই সমর্থন ছিল বেনজিওর।

গুগলের ব্রেইন রিসার্চ দলের শুরুর দিকে নেতৃত্ব দেয়া বেনজিও ‘ডিপ লার্নিং’ অ্যালগরিদম ডেভেলপমেন্ট করেন।

আরও পড়ুন:
ইলন মাস্কের বিরুদ্ধে টেসলার শেয়ারহোল্ডারের মামলা
কার্বন ক্যাপচার উদ্ভাবনে ১০ কোটি ডলার দেবেন ইলন মাস্ক

শেয়ার করুন