তদন্তের ধাক্কা কাটিয়ে উত্থান, বেক্সিমকো গ্রুপের রমরমা

তদন্তের ধাক্কা কাটিয়ে উত্থান, বেক্সিমকো গ্রুপের রমরমা

বেক্সিমকো ফার্মাসিউটিক্যালসের ফ্যাক্টরি

বেক্সিমকো গ্রুপের চার কোম্পানি বেক্সিমকো লিমিটেড, বেক্সিমকো ফার্মাসিউটিক্যালস, শাইনপুকুর সিরামিকস ও আইএফআইসি ব্যাংকের দাম বেড়েছে একই দিনে। সবচেয়ে বেশি লেনদেন হওয়া ৫টি কোম্পানির ৩টি এই গ্রুপের আর ১০টি কোম্পানির ৪টি। মোট লেনদেনের ১৬ শতাংশই হয়েছে এই একটি গ্রুপে।

৯টি কোম্পানির ‘অস্বাভাবিক দর বৃদ্ধির’ ঘটনায় তদন্ত কমিটি গঠনের ঘটনায় দুই দিনের হোঁচটের পর পুঁজিবাজার ফিরেছে চাঙাভাবে। বেশ বড় উত্থান হয়েছে সূচকে। একই সঙ্গে বেড়েছে ব্যাংক, আর্থিক খাত, প্রকৌশল, খাদ্য, জ্বালানি, ওষুধ এবং বস্ত্র খাত।

এই উত্থানের ভিড়ে একটি গ্রুপের মালিকানাধীন চারটি কোম্পানির প্রতিটির উল্লেখযোগ্য পরিমাণে দর বৃদ্ধির বিষয়টি ছিল উল্লেখযোগ্য।

বেক্সিমকো গ্রুপের চার কোম্পানি বেক্সিমকো লিমিটেড, বেক্সিমকো ফার্মাসিউটিক্যালস, শাইনপুকুর সিরামিকস ও আইএফআইসি ব্যাংকের দাম বেড়েছে একই দিনে।

এগুলোর মধ্যে শতকরা হিসেবে সবচেয়ে বেশি বেড়েছে শাইনপুকুরের দাম। দ্বিতীয় অবস্থানে আছে বেক্সিমকো লিমিটেড, যে কোম্পানিটি নিম্ন আয়ের চক্র ভেদ করে করোনার বছরে যুক্তরাষ্ট্রে পিপিই রপ্তানি করে ঘুরে দাঁড়িয়েছে।

ভারত থেকে করোনার টিকা আসায় মধ্যস্থতা করার পর দ্বিগুণের বেশি বেড়েছিল বেক্সিমকো ফার্মা। টিকা আসায় অনিশ্চয়তায় দর হারানো কোম্পানিটি আবার ঘুরে দাঁড়িয়েছে। আর ব্যাংকগুলোর মধ্যে সম্প্রতি সবচেয়ে বেশি বাড়ছে গত অর্থবছরে এই খাতে সবচেয়ে কম লভ্যাংশ দেয়া আইএফআইসি ব্যাংক।

কেবল দাম বাড়ছে এমন নয়, দিনের সবচেয়ে বেশি লেনদেন হওয়া ১০টি কোম্পানির ৪টিই এই বেক্সিমকো গ্রুপের।

তদন্তের ধাক্কা কাটিয়ে উত্থান, বেক্সিমকো গ্রুপের রমরমা

তবে পুঁজিবাজারে ভালো দিনেও বিমা খাতের শেয়ারগুলোর দর হারানো থামেনি। সেই সঙ্গে আশা জাগিয়ে মিউচ্যুয়াল ফান্ড খাত যে ঘুম দিয়েছে, সেখান থেকে ওঠার কোনো নামই নেই।

গত মঙ্গলবার লেনদেন চলাকালে নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিএসইসি থেকে আদেশ আসে যে, আনোয়ার গ্যালভানাইজিং, বাংলাদেশ ন্যাশনাল ইনস্যুরেন্স, বিকন ফার্মা, জিবিবি পাওয়ার, এমারেল্ড অয়েল, ন্যাশনাল ফিড মিল, পেপার প্রসেসিং অ্যান্ড প্যাকেজিং, ঢাকা ডায়িং এবং ফুয়াং সিরামিক কোম্পানির অস্বাভাবিক মূল্যবৃদ্ধির বিষয়টি তদন্ত হবে।

এই তদন্তের আদেশ জারির আগের দিন গত সোমবার ২ হাজার ৯৩৫ কোটি ৭ লাখ ৮ হাজার টাকার লেনদেন হয়েছিল। তার পরের দিন লেনদেন চলাকালে আদেশ জারির পর সূচক কিছুটা কমার পাশাপাশি লেনদেনও কমে দেড় শ কোটি টাকার মতো।

তবে তদন্তের আদেশের প্রকৃত প্রভাব পড়ে বুধবার। মঙ্গলবারের তুলনায় লেনদেন ৬০০ কোটি টাকা কমে ২ হাজার ২১২ কোটি টাকার ঘরে নেমে আসে।

আর এ অবস্থায় দীর্ঘ এক দশকের মন্দাভাব থেকে চাঙা হয়ে ওঠা পুঁজিবাজারে নতুন কোনো অস্থিরতা তৈরি হয় কি না, এ নিয়ে শুরু হয় সংশয়।

তবে যেসব কোম্পানির মূল্যবৃদ্ধির বিষয়ে তদন্তের ঘোষণা এসেছে, তার মধ্যে অন্তত ৪টির মূল্য সংবেদনশীল তথ্য আছে, আরও কয়েকটি কোম্পানি ভালো করছে আর একই রকম দাম বৃদ্ধি পাওয়া অন্য কোম্পানিকে রেখে কেবল এগুলোর তদন্ত কেন, সে প্রশ্ন উঠেছে।

আর তদন্তের এ ধরনের নির্দেশনা এবারই প্রথম এসেছে এমন নয়। এর আগেও এসেছে এবং সেসব নির্দেশনা প্রত্যাহার হয়েছে। আর এ ধরনের তদন্তে বিশেষ কিছু পাওয়া যায়, এমনও নয়।

এ বিষয়গুলো সামনে আসার পর বিনিয়াগকারীদের উদ্বেগ যে কাটতে শুরু করেছে, তা বৃহস্পতিবারের লেনদেনেই স্পষ্ট। সকাল ১০টায় লেনদেনের শুরুতেই যে সূচক বেড়েছিল, সেখান থেকে আর কমেনি বরং সময় গড়ানোর সঙ্গে সঙ্গে তা বেড়েছে।

সোয়া এক ঘণ্টা যেতে না যেতেই ১ হাজার কোটি আর আড়াই ঘণ্টাতেই লেনদেন ছাড়িয়ে যায় ২ হাজার কোটি টাকার ঘর। বেলা দুইটায় লেনদেন আগের দিনের লেনদেনকে ছাড়িয়ে সোয়া ২ হাজার কোটি টাকার ঘর অতিক্রম করে।

দিন শেষে সূচক আগের দিনের তুলনায় বাড়ে ৮০ পয়েন্টের কাছাকাছি। আর এক দিনের ব্যবধানে লেনদেন আবার আড়াই হাজার কোটি টাকা ছাড়িয়ে গেছে।

ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের প্রধান সূচক ডিএসইএক্সের অবস্থান এখন ৬ হাজার ৬৯৯ পয়েন্ট। ডিএসইর সূচক এর চেয়ে বেশি ছিল ২০১১ সালের ২৪ জুলাইয়ের পর সর্বোচ্চ।

সেদিন ডিএসই সূচকের অবস্থান ছিল ৬ হাজার ৭১০ পয়েন্ট। সেটি অতিক্রম করতে পারলে পরের ধাপ ওই বছরের ২ ফেব্রুয়ারি ৬ হাজার ৭১৯ পয়েন্ট।

তদন্তের ধাক্কা কাটিয়ে উত্থান, বেক্সিমকো গ্রুপের রমরমা

পিপিই পার্ক উদ্বোধন করার পর বেক্সিমকোর আয় বেড়েই চলছে, বাড়ছে কোম্পানিটির শেয়ারের দামও। ছবি: নিউজবাংলা

বেক্সিমকো গ্রুপের কী চিত্র

এই গ্রুপের কেবল শেয়ারদর বেড়েছে এমন নয়, এদিন সবচেয়ে বেশি লেনদেন হওয়া ১০টি কোম্পানির চারটিই এই গ্রুপের। এর মধ্যে যথারীতি শীর্ষে বেক্সিমকো লিমিটেড, যে কোম্পানির অর্থেক লেনদেনও হয়নি অন্য কোনো কোম্পানিতে।

এই গ্রুপে লেনদেন হয়েছে ৪২৬ কোটি টাকারও বেশি, যার অর্ধেকের বেশি হয়েছে বেক্সিমকো লিমিটেডে। এদিন বাজারে মোট লেনদেন ছিল ২ হাজার ৬৫৯ কোটি টাকার কিছু বেশি। অর্থাৎ এই লেনদেনের কেবল ১৬ শতাংশ হয়েছে একটি গ্রুপেই।

বিবিধ খাতে যেমন সবচেয়ে বেশি লেনদেন হয়েছে বেক্সিমকোতে, তেমনি ব্যাংক খাতে এই গ্রুপের আইএফআইসি, ওষুধ খাতে গ্রুপের বেক্সিমকো ফার্মা আর সিরামিক খাতে শাইনপুকুর সিরামিকসে সবচেয়ে বেশি লেনদেন হয়েছে।

২০১০ সালে পুঁজিবাজারে মহাধসের আগে বেক্সিমকো লিমিটেডের দর ৩০০ টাকার বেশি হয়ে যায়। শেয়ারপ্রতি আয়ও তখন ছিল ৩০ টাকার বেশি। তবে বাজার ধসের সঙ্গে তাল মিলিয়ে কোম্পানিটির আয়ও কমতে থাকে।

২০১৯-২০ অর্থবছরে শেয়ারপ্রতি আয় ৫১ পয়সায় নেমে আসার পর শেয়ারমূল্যও নেমে আসে ১৩ টাকায়। তবে করোনার বছরে যুক্তরাষ্ট্রে চিকিৎসাসামগ্রী রপ্তানির বড় আদেশ পাওয়ার পর থেকে তাদের আয় ক্রমাগত বাড়ছে, সেই সঙ্গে বাড়ছে শেয়ারমূল্য।

সেই সঙ্গে কোম্পানিটি সুকুক বন্ডের মাধ্যম ৩ হাজার কোটি টাকা তুলে দুটি বিদ্যুৎকেন্দ্রে বিনিয়োগের অনুমোদন পাওয়ার পর টাকা তোলাও শুরু করে দিয়েছে।

সুকুক বন্ডের অনুমোদন-প্রক্রিয়া চলাচালে শেয়ার মূল্য ৯০ থেকে ১০০ টাকার ভেতর ঘোরাঘুরি করছিল। তবে ২০১৩ সালের পর প্রথমবারের মতো শেয়ারমূল্য ১০০ টাকার ওপরে গিয়ে লেনদেন শেষ হয় বুধবার।

গত বছরের শেষ সময় থেকেই এই কোম্পানিতে বিনিয়োগকারীদের আগ্রহ এতটাই বেড়েছে যে অন্য কোনো কোম্পানি লেনদেনের শীর্ষ স্থানে থাকতে পেরেছে কেবল হাতে গোনা দু-এক দিন।

বেলা দেড়টা বাজার আগেই এই কোম্পানিতে লেনদেন দুই শ কোটি টাকা ছাড়িয়ে যায়, যেখানে গোটা বাজারের লেনদেন তখনও দুই হাজার কোটি টাকা হয়নি।

আগের দিনের শেয়ার দর বেড়েছিল ৪ টাকা ৭০ পয়সা। ৯৭ টাকা ৯০ পয়সা থেকে বেড়ে হয় ১০২ টাকা ৬০ পয়সা। আজ দিনের লেনদেন শুরু করে ১০৪ টাকায়। একপর্যায়ে দাম বেড়ে ১১০ টাকা ২০ পয়সা হয়ে যায়। কিন্তু পরে কিছুটা কমে লেনদেন শেষ করে ১০৭ টাকা ৫০ পয়সায়।

কোম্পানিতে মোট লেনদেন হয়েছে ২৫৮ কোটি ৯৪ লাখ টাকা, যা মোট লেনদেনের ১০ শতাংশের মতো।

একই গ্রুপের বেক্সিমকো ফার্মা দেশসেরা ওষুধ উৎপাদনকারী কোম্পানির একটি। তবে শেয়ার দর গত কয়েক বছর ধরে ৯০ থেকে ১২০ টাকার ঘরে ঘুরপাক খেত। ভারতের সিরাম ইনস্টিটিউট থেকে করোনার ৩ কোটি ৪০ লাখ টিকা আনতে কোম্পানিটি লোকাল এজেন্ট হওয়ার পর থেকে তাদের দাম বাড়তে থাকে। একপর্যায়ে তা ২১৬ টাকা ৯০ পয়সা হয়ে যায়।

সরকারের সঙ্গে চুক্তিটি ছিল এমন: প্রতি টিকায় তারা পাবে ১ ডলার করে, অর্থাৎ ৩ কোটি ৪০ লাখ টিকায় ৩ কোটি ৪০ লাখ ডলার। বাংলাদেশি টাকায় প্রায় ২৯০ কোটি টাকা।

তবে ছন্দপতন ঘটে ভারতে করোনার ব্যাপক বিস্তারের কারণে। সে দেশের সরকারের নিষেধাজ্ঞায় সিরাম ৭০ লাখের পর আর টিকা পাঠাতে পারেনি আর এ কারণে বেক্সিকমকো ফার্মার প্রত্যাশিত আয়ও হয়নি। এই অনিশ্চয়তায় শেয়ার দর কমতে কমতে ১৬৮ টাকা ৮০ পয়সায় নেমে আসে।

তবে গত ১ জুন থেকে ধীরে ধীরে দাম বাড়তে শুরু করেছে। এখন তা আবার ২০০ টাকার আশপাশে চলে এসেছে।

সবচেয়ে বেশি লেনদেনের পঞ্চম স্থানে থাকা কোম্পানিটির শেয়ার দর আগের দিনের চেয়ে ৩ টাকা ১০ পয়সা যোগ হয়ে লেনদেন শেষ হয়েছে ১৩৩ টাকা ৭০ পয়সায়। হাতবদল হয়েছে মোট ৪৮ কোটি ৮০ লাখ টাকার শেয়ার।

অন্যদিকে ২০২০ সালে আয় কমায় লভ্যাংশ মাত্র ৫ শতাংশ দেয়ার কারণে আইএফআইসি ব্যাংকের শেয়ার দর অভিহিত মূল্য ১০ টাকার নিচে নেমে গিয়েছিল। সম্প্রতি বা বাড়তে বাড়তে ১৫ টাকা ছাড়িয়ে গেছে। ব্যাংক খাতের কোম্পানিগুলো দাম বাড়ার পর ধরে রাখতে পারছে না ইদানীং। ব্যতিক্রম আইএফআইসি ব্যাংক।

এই ব্যাংকটির দাম টাকা চার কর্মদিবস বাড়ল। গত ২ আগস্ট শেয়ারপ্রতি দর ছিল ১৩ টাকা ৫০ পয়সা। সেটি বৃহস্পতিবার লেনদেন শেষ করেছে ১৬ টাকা ৮০ পয়সায়।

সবচেয়ে বেশি লেনদেনের তালিকায় তৃতীয় স্থানে থাকা এই কোম্পানিতে লেনদেন হয়েছে মোট ৭৬ কোটি ৫০ লাখ টাকা।

এই গ্রুপের অন্য কোম্পানি শাইনপুকুর সিরামিকস সবচেয়ে বেশি লেনদেন হওয়ার তালিকায় ছিল ১০ নম্বরে।

২০১৫ সালে ১৫ শতাংশ বোনাস লভ্যাংশের পর ২০১০ সালে শেয়ারপ্রতি ২০ পয়সা লভ্যাংশ দেয়া কোম্পানিটির শেয়ার দর গত ২৭ জুনও ছিল ২৫ টাকা ২০ পয়সা। বৃহস্পতিবার এক দিনেই ৩ টাকা ২০ পয়সা বেড়ে দাম দাঁড়িয়েছে ৩৮ টাকা ৩০ পয়সায়।

কোম্পানির শেয়ার হাতবদল হয়েছে মোট ৪২ কোটি ৭৮ লাখ টাকার।

তদন্তের ধাক্কা কাটিয়ে উত্থান, বেক্সিমকো গ্রুপের রমরমা

এক দিনের ব্যবধানে ব্যাংক-আর্থিক খাতে ভালো দিন

মঙ্গলবার ৯ কোম্পানির দর বৃদ্ধির বিষয়টি তদন্তে বিএসইসির আদেশ জারির দিন প্রায় সব খাতে দরপতন হলেও ব্যাংক ও আর্থিক খাতের দর বৃদ্ধি সূচকের বড় পতন হতে দেয়নি। ব্যাংকে দাম বৃদ্ধির পরিমাণটা খুব বেশি না হলেও সবচেয়ে বড় বাজার মূলধনের খাত হওয়ায় তার কিছুটা প্রভাব থাকে।

তবে নানা সময় দেখা গেছে ব্যাংকে দাম বৃদ্ধি হলেও তা টেকে না। আর একদিন দাম বাড়লে পরের কয়েক দিন ধরে কমে।

অতীতের সেই ধারাবাহিকতা দেখা যায় ‍বুধবার। আগের দিন যেমন অল্প করে কিছু বেড়েছিল, পরদিন অল্প করে কমে যায় বেশির ভাগ ব্যাংকের শেয়ারদর।

সপ্তাহের শেষ কর্মদিবসে আবার অল্প করে বেড়েছে বেশির ভাগ ব্যাংকের শেয়ারদর। এর ভিড়ে অবশ্য এবি ও আল আরাফাহ ব্যাংকের দর বেড়েছে উল্লেখযোগ্য হারে।

এবির শেয়ার দরে আগের দিনের দামের সঙ্গে যোগ হয়েছে ১ টাকা ১০ পয়সা, আর আল আরফাহর দামের সঙ্গে ১ টাকা ৪০ পয়সা। নতুন তালিকাভুক্ত সাউথ বাংলার শেয়ারদর আবার ১০ শতাংশ বা ১ টাকা ১০ পয়সা বেড়েছে।

বাকিগুলোর দাম বাড়া বা কমা-কোনোটার হারই খুব একটা বেশি না। ১০ থেকে ৩০ পয়সার মধ্যে রয়েছে দাম উঠানামা।

সব মিলিয়ে এই খাতে বেড়েছে ২৬টির দর, কমেছে ৬টির। লেনদেনও কিছুটা বেড়েছে। আগের দিন হাতবদল হয়েছিল ২১৮ কোটি ৫৩ লাখ টাকা। আজ হয়েছে ২২০ কোটি ৯২ লাখ টাকা।

ব্যাংকের তুলনায় আর্থিক খাতে দাম বৃদ্ধির হার বেশি। জিএসপি ফিনান্সের ১ টাকা ১০ পয়সা, বে লিজিং, ডিবিএইচ ও আইডিএলসি ও ইউনাইটেড ফিনান্সের ১ টাকা ৭০ পয়সা করে, বিডি ফিনান্সের ২ টাকা ২০ পয়সা, উত্তরা ফিনান্সের ২ টাকা ৬০ পয়সা, আইপিডিসির ২ টাকা ৮০ পয়সা, লঙ্কাবাংলা ফিনান্সের ৩ টাকা ২০ পয়সা, ন্যাশনাল হাউজিং ফিনান্সের শেয়ারের দর বেড়েছে ৪ টাকা ২০ পয়সা করে। আগের দুই দিন সর্বোচ্চ মূল্যসীমা স্পষ্ট করা ইসলামিক ফিনান্স তৃতীয় দিনের মতো বেড়েছে ৮০ পয়সা।

এই খাতে লেনদেনও হয়েছে ব্যাংপক। প্রকৌশল ও বিবিধ খাতকে পেছনে ফেলে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ লেনদেন হয়েছে খাতটিতে। হাতবদল হয়েছে ৩৫০ কোটি ৯৬ লাখ টাকার শেয়ার। আগের দিন লেনদেন ছিল ২০০ কোটি ৫৩ লাখ টাকা।

বিমা নিয়ে সাবধানবাণী গায়ে না মেখে এখন হতাশা

গত বছরের জুলাই থেকে চলতি বছরের জানুয়ারিতে এক দফা আর চলতি বছরের ৫ এপ্রিল থেকে জুনের মাঝামাঝি সময় পর্যন্ত বিমা খাতে দ্বিতীয় দফা চাঙাভাব দেখা দেয়। কোম্পানির আয়, লভ্যাংশের সম্ভাবনা বিচার না করে উড়তে থাকে দাম। বেশ কিছু কোম্পানির শেয়ারদর এই সময়ের মধ্যে তিন থেকে ১০ গুণ পর্যন্ত বেড়েছে।

এই অস্বাভাবিক দর বৃদ্ধির বিষয়টি নিয়ে বারবার বাজার বিশ্লেষকরা সতর্ক করেছেন। কিন্তু বিনিয়োগকারীদের একটি অংশ তা কানেই তোলেননি। বর যারা সতর্ক করেছেন, তাদেরকে কটূ কথা শুনিয়েছেন।

আর ফেসবুকভিত্তিক বিভিন্ন পেজে কয়েকজন ব্যক্তি একে ‘রকেট সেক্টর’ আখ্যা দিয়ে প্রলুব্ধ করেছে। তারা বারবার নানা চার্ট আর কথিত টেকনিক্যাল অ্যানালাইসিস ব্যাখ্যা করে বোঝাতে চেয়েছেন দাম আরও বাড়বে।

তবে ১৪ জানুয়ারি থেকে ৪ এপ্রিল পর্যন্ত এক দফা সংশোধনে কোম্পানিগুলো ৪০ থেকে ৬০ শতাংশ দর হারিয়ে ফেলার মতোই এবারও ৩০ থেকে ৩৫ শতাংশ দর হারিয়েছে বহুগুলো।

প্রায় প্রতিদিনই বিনিয়োগকারীরা পুঁজিবাজারকেন্দ্রিক ফেসবুক পেজে তাদের হতাশার কথা বলেন। আশা করেন আগামী দিন থেকে বিমা খাত ঘুরে দাঁড়াবে। কিন্তু পরের দিন দাম আরও কমায় সেই হতাশা বাড়ে।

এই খাতের ৫১টি কোম্পানির মধ্যে ৭ টির দর বৃদ্ধির বিপরীতে কমেছে ৪৩ টির। দাম ধরে রাখতে পেরেছে ১টি।

এই খাতে লেনদেন হয়েছে ১২৬ কোটি ৮০ লাখ টাকা, যা আগের দিন ছিল ১০৫ কোটি ৪২ লাখ টাকা।

মিউচ্যুয়াল ফান্ডে আইসিবির পেরেক

জুনে অর্থবছর শেষ করা ৬টি মিউচ্যুয়াল ফান্ডের রেকর্ড লভ্যাংশের পর রাষ্ট্রায়ত্ত প্রতিষ্ঠান আইসিবির সহযোগী প্রতিষ্ঠান আইসিবি অ্যাসেট ম্যানেজমেন্ট কোম্পানি পরিচালিত আটটি মিউচ্যুয়াল ফান্ড গত রাতে তাদের লভ্যাংশ সংক্রান্ত সিদ্ধান্ত নিয়েছে। ঢাকা ও চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের নোটিশ বোর্ডে বৃহস্পতিবার সেটি প্রকাশ হয়েছে।

গত বছরের মন্দাবাজারে ফান্ডগুলো লোকসান না দেয়নি। কিন্তু এবার চাঙা বাজারে তাদের আয় হয়েছে খুবই কম। সবচেয়ে বেশি আয় করেছে যে ফান্ডটি, সেটি ইউনিটপ্রতি ৬৮ পয়সা মুনাফা করতে পেরেছে। আর আটটি ফান্ডের লভ্যাংশ ঘোষণা হয়েছে ৪ থেকে ৮ শতাংশ।

এর আগে লভ্যাংশ ঘোষণা করা বেসরকারি সম্পদ ব্যবস্থাপনা কোম্পানির ফান্ডগুলো সর্বনিম্ন ১ টাকা থেকে ১ টাকা ৭৫ পয়সা দেবে ইউনিটধারীদের। এসব ফান্ডের মধ্যে সবচেয়ে কম আয় করেছে যেটি, সেটিও ইউনিটপ্রতি ১ টাকা ৮১ পয়সা মুনাফা করেছে। সবচেয়ে বেশি মুনাফা করা ফান্ডটি ইউনিটপ্রতি ৩ টাকা ১৪ পয়সা আয় করেছে।

৯ টাকার ঘরে ফান্ড ১ টাকা ২০ পয়সা আর ১২ টাকার ঘরের ফান্ড ১ টাকা ৫০ পয়সা লভ্যাংশ ঘোষণার পরেও সেগুলোর দাম কমছিল। এর সঙ্গে যোগ হয়েছে আইসিবির ফান্ডগুলোর নিম্ন আয় ও লভ্যাংশ। সব মিলিয়ে ৩৬টি ফান্ডের মধ্যে দর হারিয়েছে ২৬ টি। আগের দিনের দর ধরে রাখতে পেরেছে ৭ টি। আর বেড়েছে কেবল তিনটির।

জুনে অর্থবছর শেষ হয়েছে এমন ফান্ডের সংখ্যা পুঁজিবাজারে ২৯টি। এর মধ্যে আরও দুটি লভ্যাংশ ঘোষণা করবে বিকেলে। বাকি ১৩টি এখন সভা ঘোষণা সংক্রান্ত তারিখ জানায়নি।

এই খাতে লেনদেন হয়েছে ৭৪ কোটি ৫৬ লাখ টাকা, যা আগের দিন ছিল ৫০ কোটি ৩২ লাখ টাকা।

তদন্তের ধাক্কা কাটিয়ে উত্থান, বেক্সিমকো গ্রুপের রমরমা

মূল উত্থান বস্ত্র খাতে

এই খাতে লেনদেন হয়েছে সর্বোচ্চ ৪৬১ কোটি টাকা, যা আগের দিনের চেয়ে ১২৩ কোটি টাকা বেশি। বুধবার হাতবদল হয়েছিল ৩৩৮ কোটি ৪০ লাখ টাকার।

এই খাতের ৫৮টি কোম্পানির মধ্যে ৫০টির দাম বেড়েছে। সবচেয়ে বেশি দাম বৃদ্ধি পাওয়া ৫টিই এই খাতের কোম্পানি। এগুলোর দাম বেড়েছে একদিনে যত বাড়া সম্ভব ততই।

কোম্পানিগুলো হলো সিএনএ, রিংসাইন, তাল্লু, নুরানী ও আলিফ।

এর মধ্যে রিংসাইনের বোর্ড পুনর্গঠনের পর সেটি উৎপাদনে চলে এসেছে। বন্ধ থাকা তাল্লুর দাম গত কয়েকদিন ধরেই বাড়ছে। গত এপ্রিলেও শেয়ারটি লেনদেন হয়েছে ৪ টাকার নিচে।

অন্যদিকে নুরানীর মালিকপক্ষ কাউকে না জানিয়ে কোম্পানি বন্ধ করে দিয়েছে বলে সম্প্রতি ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের পরিদর্শনে বেরিয়ে এসেছে। এই খবরে বুধবার কোম্পানিটির শেয়ার দর প্রায় ১০ শতাংশ কমে যায়। তবে রাতে নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিএসইসি এই কোম্পানিটির বোর্ড ও পুনর্গঠন করে দিয়েছে। এই খবরে আবার চাঙা হলো দাম।

তদন্তের ধাক্কা কাটিয়ে উত্থান, বেক্সিমকো গ্রুপের রমরমা
ডিএসইতে লেনদেনের সবশেষ চিত্র

অন্যান্য খাতের চিত্র

জুনে অর্থবছর শেষ করে লভ্যাংশ ঘোষণার অপেক্ষায় থাকা প্রকৌশল খাতে আবার চাঙাভাব দেখা গেছে। এই খাতের ৪২টি কোম্পানির মধ্যে দাম বেড়েছে ২৮টির। কমেছে ১২টির আর দুটির দাম ছিল অপরিবর্তিত।

লেনদেনও কিছুটা বেড়েছে। আগের দিন হাতবদল হয়েছিল ২৭৭ কোটি ৪৩ লাখ টাকা। সেটি বেড়ে হয়েছে ২৮৪ কোটি ১৭ লাখ টাকা।

প্রধান অন্য খাতগুলোর মধ্যে বিদ্যুৎ ও জ্বালানি এক দিনের বিরতিতে আবার চাঙা হয়েছে। এই খাতের ২৩টি কোম্পানির মধ্যে দাম বেড়েছে ১৩টির, কমেছে ৮টির আর পাল্টায়নি দুটির দর। লেনদেন হয়েছে ১১৭ কোটি ৮৬ লাখ টাকা, যা আগের দিন ছিল ১১৫ কোটি ৬৮ লাখ টাকা।

ওষুধ ও রসায়ন ভাতের ৩১টি কোম্পানির মধ্যে একটির লেনদেন স্থগিত। বাকিগুলোর মধ্যে দাম বেড়েছে ১৪টির, কমেছে ১৫টির আর অপরিবর্তিত ছিল একটির দর। লেনদেন হয়েছে মোট ২৪৫ কোটি ২৮ লাখ টাকা, যা আগের দিন ছিল ২২১ কোটি ৬৩ লাখ টাকা।

খাদ্য ও আনুষঙ্গিক খাতের ২০টি কোম্পানির মধ্যে দাম বেড়েছে ১৪টির, কমেছে ৬টির। লেনদেন অবশ্য কমেছে। আগের দিন হাতবদল হয়েছিল ৭৬ কোটি ২১ লাখ টাকা। আজ হয়েছে ৬৭ কোটি ৮৫ লাখ টাকা।

তথ্য প্রযুক্তি খাতের ১১টি কোম্পানির মধ্যে দাম বেড়েছে ৭টির, কমেছে ৪টির শেয়ার দর। লেনদেন হয়েছে ৫৬ কোটি ৭০ লাখ টাকা। আগের দিন লেনদেন ছিল ৫২ কোটি ৪০ লাখ টাকা।

বেক্সিমকো লিমিটেডের বদৌলতে বিবিধ খাত লেনদেনের তৃতীয় সর্বোচ্চ অবস্থানে উঠে এসেছে। এই খাতের ১৪টি কোম্পানির মধ্যে ৩টির দর হারানোর বিপরীতে বেড়েছে ১১টির। হাতবদল হয়েছে মোট ৩২৩ কোটি ৯০ লাখ টাকা। আগের দিন যা ছিল ২৬৪ কোটি ৬১ লাখ টাকা।

আরও পড়ুন:
বড় পতন থেকে রক্ষা ‘হতাশার ব্যাংকে’
‘নিলাম আতঙ্ক’ কাটিয়ে ইতিহাসের পঞ্চম সর্বোচ্চ লেনদেন
তুমুল আগ্রহের রবি আর জ্বলেনি
স্কয়ার-বিকনের শেয়ারের সমান দাম কী বার্তা দেয়?

শেয়ার করুন

মন্তব্য

সুখের সংসারে সুব্রত, ফাল্গুনী

সুখের সংসারে সুব্রত, ফাল্গুনী

বিয়ের পর সুব্রত ও ফাল্গুনী। ছবি: নিউজবাংলা

ছোটবেলায় এক দুর্ঘটনায় কনে ফাল্গুনীর দুই হাতই বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। সবকিছু জেনেই তার সঙ্গে সম্পর্কে জড়ান সুব্রত। সামাজিক সব প্রতিবন্ধকতাকে পাশ কাটিয়ে প্রেমিকা ফাল্গুনিকে জীবনসঙ্গী করে নিয়েছেন তিনি।

সেই ছোট্টবেলা থেকে পরিচয়, তবে প্রেমের সম্পর্ক ৫ বছরের। এর পরিণয় ঘটে বুধবার রাতে। বরিশালের ঐতিহ্যবাহী শঙ্করমঠ চত্বরে হিন্দু রীতিতে হয় বিয়ে হয় সুব্রত ও ফাল্গুনীর।

বর পটুয়াখালীর গলাচিপার সুব্রত মিত্র বেসরকারি সংস্থা কোডেক এর মাঠ কর্মকর্তা। আর কনে ফাল্গুনী সাহা একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের মানবসম্পদ বিভাগে কাজ করেন।

তবে সবকিছু ছাপিয়ে এই বিয়ের অন্যতম আকর্ষণ ছিল গভীর প্রেম। তাইতো আয়োজনে আমন্ত্রণ ছাড়াই উপস্থিতি ছিল বহু মানুষের।

ছোটবেলায় এক দুর্ঘটনায় কনে ফাল্গুনীর দুই হাতই বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। সবকিছু জেনেই তার সঙ্গে সম্পর্কে জড়ান সুব্রত। সামাজিক সব প্রতিবন্ধকতাকে পাশ কাটিয়ে প্রেমিকাকে জীবনসঙ্গী করে নিয়েছেন তিনি।

ফাল্গুনী সাহা নিউজবাংলাকে বলেন, ‘২০০২ সালে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে হাত দুটি কেটে ফেলতে হয়। তবে নিজেকে কখনও দুর্বল ভাবিনি। স্কুল- কলেজের গণ্ডি পেরিয়ে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় থেকে মাস্টার্স শেষ করি। তারপর শুরু চাকরি জীবন।

‘আমাদের সমাজব্যবস্থা সম্পর্কে আপনারা সবাই অবগত। দৃষ্টিভঙ্গী আর মানসিকতা ঠিক থাকলে প্রতিবন্ধকতা কোনো বিষয় নয়। আমাদের বিয়েটা দৃষ্টিভঙ্গী বদলানোর উদাহরণ হয়ে থাকবে। সবার আন্তরিকতা আর ভালোবাসায় এ পর্যন্ত পৌঁছাতে পেরেছি।’

ফাল্গুনী আরও বলেন, ‘স্কুল জীবন থেকে কর্মজীবন… আমার হাত না থাকার বিষয়টি কেউ কোনোদিন বুঝতে দেননি। আসলে একেকজনের মানসিকতা একেকরকম। যার পক্ষে এমন মেয়েকে বিয়ে করা সম্ভব না, তার দূরে থাকাই ভালো। কারও ওপর কোনোকিছু চাপিয়ে দেয়া ঠিক না।’

সুব্রত মিত্র নিউজবাংলাকে বলেন, ‘ফাল্গুনীকে আমি ছোট বেলা থেকে চিনি। ও যখন ভার্সিটিতে পড়ত, তখন ওর সঙ্গে আমার ফেসবুকে কথা হতো। একটা সময় বুঝতে পারি ও পড়াশোনায় অনেক ভালো করছে। তবে কোনো সম্পর্কে জড়ানোর মানসিকতা ছিল না। আমার কাছে ওর হাত না থাকাটা কোনো সমস্যা মনে হয়নি। একটা মানুষের হাত না থাকায় সে বিয়ে করতে পারবে না!

‘আমি ওকে স্বপ্ন দেখাই, ওকে ভালোবাসতে শিখাই। বিয়ে করার সিদ্ধান্ত জানাই। অবশেষে আমরা বিয়েও করেছি। আমাদের জন্য আশীর্বাদ করবেন।’

সুব্রত মিত্রর ছোট বোন শ্রাবন্তী বলেন, ‘আর পাঁচটা বিয়ে যেমন হয়, এখানেও তেমনিভাবে বিয়ে হয়েছে। অনেকেই বলতে পারে স্বাবলম্বী একটা ছেলে কেন দুই হাত ছাড়া একটি মেয়েকে বিয়ে করছে? আমি বলব সবার মানসিকতা আমার ভাইয়ের মতো হওয়া উচিত। এটা উদাহরণ হয়ে থাকে।’

অতিথি ও স্বজনরা জানান, আয়োজনে কোনো ঘাটতি ছিল না। মঙ্গলবার গায়ে হলুদের অনুষ্ঠান হয়েছে। বুধবার জাঁকজমকভাবে বিয়ে হয়েছে।

শ্রী শ্রী শংকর মঠের সাধারণ সম্পাদক বাসুদেব কর্মকার ভাষাই বলেন, ‘এই বিয়ে আমার কাছে একটি ঐতিহাসিক ঘটনা। আমি অবাক হয়েছি। একটা মেয়ের দুইটি হাত নেই, তাকে একটি সুস্থ ছেলে বিয়ে করেছে। ভালোবাসার জয় হয়েছে।’

আরও পড়ুন:
বড় পতন থেকে রক্ষা ‘হতাশার ব্যাংকে’
‘নিলাম আতঙ্ক’ কাটিয়ে ইতিহাসের পঞ্চম সর্বোচ্চ লেনদেন
তুমুল আগ্রহের রবি আর জ্বলেনি
স্কয়ার-বিকনের শেয়ারের সমান দাম কী বার্তা দেয়?

শেয়ার করুন

চকলেট দিতে ডেকে নিয়ে শিশুকে ‘বলাৎকার’

চকলেট দিতে ডেকে নিয়ে শিশুকে ‘বলাৎকার’

ওই শিশুর বাবা নিউজবাংলাকে জানান, হাকিম মিয়া ওই এলাকার কৃষিকাজ করেন। গত মঙ্গলবার বিকেলে চকলেটের লোভ দেখিয়ে তার ৭ বছরের ছেলেকে লঙ্গন নদীর পাড়ে নিয়ে বলাৎকার করেন হাকিম।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নাসিরনগরে ৭ বছরের শিশুকে বলাৎকারের অভিযোগে এক যুবককে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

হাকিম মিয়া নামে ওই যুবককে বৃহস্পতিবার দুপুরে উপজেলার ভলাকুট ইউনিয়নের ভলাকুট গ্রাম থেকে গ্রেপ্তার করা হয়।

হাকিম মিয়া ইউনিয়নের বাইংলাপাড়া গ্রামের বাসিন্দা।

নাসিরনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) হাবিবুল্লাহ সরকার তথ্যগুলো নিশ্চিত করেছেন।

ওই শিশুর বাবা নিউজবাংলাকে জানান, হাকিম মিয়া ওই এলাকার কৃষিকাজ করেন। গত মঙ্গলবার বিকেলে চকলেটের লোভ দেখিয়ে তার ৭ বছরের ছেলেকে লঙ্গন নদীর পাড়ে নিয়ে বলাৎকার করেন হাকিম। শিশুর চিৎকারে এলাকার লোকজন এগিয়ে গেলে হাকিম পালিয়ে যান।

তিনি জানান, ছেলেকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয় সেদিন। বুধবার উন্নত চিকিৎসার জন্য নেয়া হয় ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেনারেল হাসপাতালে।

নাসিরনগর থানার ওসি হাবিবুল্লাহ সরকার বলেন, এ ঘটনায় থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। অভিযুক্ত হাকিমকে গ্রেপ্তার করে বৃহস্পতিবার বিকেলে পুলিশ তাকে আদালতে সোপর্দ করে।
শিশুটি বর্তমানে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

আরও পড়ুন:
বড় পতন থেকে রক্ষা ‘হতাশার ব্যাংকে’
‘নিলাম আতঙ্ক’ কাটিয়ে ইতিহাসের পঞ্চম সর্বোচ্চ লেনদেন
তুমুল আগ্রহের রবি আর জ্বলেনি
স্কয়ার-বিকনের শেয়ারের সমান দাম কী বার্তা দেয়?

শেয়ার করুন

এইচএসসি পরীক্ষা দিতে আসেনি সাড়ে ৪ হাজার

এইচএসসি পরীক্ষা দিতে আসেনি সাড়ে ৪ হাজার

রাজধানীর একটি কেন্দ্রে পরীক্ষা দিতে ঢুকছেন এইচএসসির পরীক্ষার্থীরা। ছবি: পিয়াস বিশ্বাস

সারাদেশে সাধারণ নয়টি শিক্ষা বোর্ডের অধিনে এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষায় সকাল এবং বিকেলে শিফটের পরীক্ষায় পরীক্ষার্থী ছিল ২ লাখ ৫৪ হাজার ৬৬৬ জন। এর মধ্যে উপস্থিত ছিলেন ২ লাখ ৫০ হাজার ৭৩ জন। এই হিসাবে অনুপস্থিত পরীক্ষার্থীর সংখ্যা ৪ হাজার ৫৯৩ জন।

এইচএসসি পরীক্ষার প্রথম দিনে ৯টি শিক্ষা বোর্ডে সাড়ে চার হাজারের বেশি পরীক্ষার্থী অনুপস্থিত ছিলেন। নকল করার অভিযোগে দিনাজপুর বোর্ডের দুই এবং যশোর বোর্ডের এক শিক্ষার্থীকে বহিষ্কার করা হয়েছে।

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের নিয়ন্ত্রণ কক্ষ থেকে বৃহস্পতিবার এসব তথ্য জানানো হয়।

প্রথম দিন নয়টি সাধারণ শিক্ষা বোর্ডের অধীনে সকালে পদার্থবিজ্ঞান (তত্ত্বীয়) বিষয় ও বিকালে সাধারণ বিজ্ঞান, খাদ্য ও পুষ্টি বিজ্ঞান (তত্ত্বীয়) রসায়ন প্রথম পত্র, জীব বিজ্ঞনি, লঘু সংগীত প্রথম পত্র (তত্ত্বীয়) ও মাদ্রাসা বোর্ডের কুরআন মজীদ বিষয়ের পরীক্ষা হয়।

সারাদেশে সাধারণ নয়টি শিক্ষা বোর্ডের অধিনে এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষায় সকাল এবং বিকেলে শিফটের পরীক্ষায় পরীক্ষার্থী ছিল ২ লাখ ৫৪ হাজার ৬৬৬ জন। এর মধ্যে উপস্থিত ছিলেন ২ লাখ ৫০ হাজার ৭৩ জন। এই হিসাবে অনুপস্থিত পরীক্ষার্থীর সংখ্যা ৪ হাজার ৫৯৩ জন।

অন্যদিকে পরীক্ষার প্রথম দিনে মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ডে অনুপস্থিতির সংখ্যা ৬ হাজার ৭৫২ জন আর অসাধুপস্থা অবলম্বন করায় ১৮ জনকে বহিস্কার করা হয়েছে। তবে রাত ৮টা পর্যন্ত কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের পরীক্ষা সংক্রান্ত তথ্য পাওয়া যায়নি।

সাধারণত প্রতিবছর এপ্রিল মাসে এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষা শুরু হলেও এ বছর করোনা মহামারির কারণে এই পাবলিক পরীক্ষা ডিসেম্বরের প্রথম সপ্তাহে নেয়ার ঘোষণা দেয় সরকার।

এবারের এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষায় অংশ নিতে নিবন্ধন করেছে ১৩ লাখ ৯৯ হাজার ৬৯০ জন শিক্ষার্থী। তাদের মধ্যে ছাত্র ৭ লাখ ২৯ হাজার ৭৩৮ জন এবং ছাত্রী ৬ লাখ ৬৯ হাজার ৯৫২ জন।

এর মধ্যে সাধারণ ৯টি শিক্ষা বোর্ডের অধীনে এইচএসসি পরীক্ষার জন্য নিবন্ধন করেছে ১১ লাখ ৩৮ হাজার ১৭ জন। তাদের মধ্যে ছাত্র ৫ লাখ ৬৩ হাজার ১১৩ জন এবং ছাত্রী ৫ লাখ ৭৪ হাজার ৯০৪ জন।

মাদ্রাসা বোর্ডের অধীনে আলিমের জন্য নিবন্ধন করেছে ১ লাখ ১৩ হাজার ১৪৪ জন। তাদের মধ্যে ছাত্র ৬১ হাজার ৭৩৮ জন এবং ছাত্রী ৫১ হাজার ৪০৬ জন।

এইচএসসি (বিএম/ভোকেশনাল) পরীক্ষার জন্য নিবন্ধন করেছে ১ লাখ ৪৮ হাজার ৫২৯ জন। তাদের মধ্যে ছাত্র ১ লাখ ৪ হাজার ৮২৭ জন এবং ছাত্রী ৪৩ হাজার ৬৪২ জন।

৯ হাজার ১৮৩টি প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা ২ হাজার ৬২১টি কেন্দ্রে এই পরীক্ষা নেয়া হচ্ছে।

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ শুরু হলে ২০২০ সালের ১৭ মার্চ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ করে দেয়া হয়। দেড় বছর পর ১২ সেপ্টেম্বর খুলে দেয়া হয় প্রাথমিক, মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক স্তরের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো।

আরও পড়ুন:
বড় পতন থেকে রক্ষা ‘হতাশার ব্যাংকে’
‘নিলাম আতঙ্ক’ কাটিয়ে ইতিহাসের পঞ্চম সর্বোচ্চ লেনদেন
তুমুল আগ্রহের রবি আর জ্বলেনি
স্কয়ার-বিকনের শেয়ারের সমান দাম কী বার্তা দেয়?

শেয়ার করুন

পরিচ্ছন্নতা কর্মীরা চালান ময়লার গাড়ি?

পরিচ্ছন্নতা কর্মীরা চালান ময়লার গাড়ি?

চালক সংকট এবং স্থায়ী চালকদের অনুপস্থিতির কারণে ময়লাবাহী ভারী ট্রাকগুলো চালাচ্ছে অদক্ষ চালকরা। অনেক ক্ষেত্রে পরিচ্ছন্নতাকর্মীদের মধ্যে যারা গাড়ি চালাতে পারেন, তাদের হাতে তুলে দেয়া হচ্ছে স্টিয়ারিং। গত সপ্তাহে ময়লার গাড়ির ধাক্কায় একজন শিক্ষার্থী এবং একজন সাবেক সংবাদকর্মী মারা গেছেন।

ঢাকার উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশনে ময়লাবাহী গাড়ির সংখ্যা ৩৩০। অথচ স্থায়ী চালক আছেন ১২৯ জন। যান্ত্রিক ত্রুটি না থাকলে শহরের বর্জ্য ব্যবস্থাপনায় সবগুলো গাড়িই ব্যবহার করার প্রয়োজন হয়। তা হলে বাকি অর্ধেক গাড়ি চালান কারা?

দুই সিটির অর্ধেকের বেশি গাড়ি মাস্টাররোল এবং দৈনিক মজুরির ভিত্তিতে নিয়োজিত চালকরা চালিয়ে থাকেন। স্থায়ী নিয়োগপ্রাপ্ত চালকদের বাইরে যারা ময়লা বহনকারী ভারী ট্রাকগুলো চালান, তাদের একটা বড় অংশ অপেশাদার চালক, যাদের অধিকাংশেরই কোনো ড্রাইভিং লাইসেন্স নেই।

আবার যারা স্থায়ী নিয়োগ পেয়ে চালক হিসেবে আছেন, তাদের একটা অংশ নিজে গাড়ি না চালিয়ে দিয়ে দেন অন্যের কাছে। সেই প্রক্সি চালকও লাইসেন্সধারী নন।

দুই সিটির পরিসংখ্যান ও সরেজমিন ঘুরে দেখা গেছে, চালক সংকট এবং স্থায়ী চালকদের অনুপস্থিতির কারণে ময়লাবাহী ভারী ট্রাকগুলো চালাচ্ছেন অদক্ষ চালকরা। এতে হরহামেশাই ঘটছে দুর্ঘটনা।

গত সপ্তাহে ময়লার গাড়ির ধাক্কায় একজন শিক্ষার্থী এবং একজন সাবেক সংবাদকর্মী মারা গেছেন।

নগর পরিকল্পনাবিদরা বলছেন, অপেশাদার এবং লাইসেন্সবিহীন ব্যক্তিদের দিয়ে ময়লাবাহী গাড়িগুলো চালানোর কারণে সড়কে দুর্ঘটনা প্রবণতা বাড়ছে। দুই মৃত্যু সেটাই প্রমাণ করে।

বুধবার দুপুরে রাজধানীর গুলিস্তানে বঙ্গবন্ধু স্কয়ারে হল মার্কেটের পাশের সড়কে দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের ময়লাবাহী গাড়ির ধাক্কায় প্রাণ হারান নটর ডেম কলেজের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী নাঈম হাসান।

ঘটনাস্থল থেকেই রাসেল নামে চালককে আটক করা হয়। রাসেলের কোনো ড্রাইভিং লাইসেন্স নেই। তাকে জিজ্ঞাসাবাদের বরাতে পুলিশ জানিয়েছে, তিনি মাস্টাররোলে একসময় পরিচ্ছন্নতাকর্মী হিসেবে কাজ করতেন। সেই চাকরি আগে চলে গেছে। বর্তমানে তিনি হারুন নামে একজনের কাছ থেকে গাড়িটা নিয়ে চালাচ্ছিলেন।

পুলিশ ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশন জানিয়েছে, হারুনও দুর্ঘটনা ঘটানো গাড়িটির প্রকৃত চালক নন। তিনিও পরিচ্ছন্নতাকর্মী। হারুন গাড়িটি নিয়েছেন স্থায়ী নিয়োগপ্রাপ্ত চালক ইরানের কাছ থেকে। রাসেল ও হারুন গ্রেপ্তার হলেও পলাতক রয়েছেন ইরান।

নাঈমের মৃত্যুর পর থেকে নিরাপদ সড়কের দাবিতে আবার আন্দোলন শুরু করেন বিভিন্ন কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। শিক্ষার্থীদের আন্দোলন চলাকালেই বৃহস্পতিবার দুপুরে রাজধানীর পান্থপথে আহসান কবীর খান নামে এক সাবেক সংবাদকর্মী মারা যান। উত্তর সিটি করপোরেশনের ময়লাবাহী একটি গাড়ির চাপায় তিনি প্রাণ হারান।

চালক হানিফ গাড়ি ফেলে পালিয়ে গেলেও গত শনিবার তাকে চাঁদপুর থেকে গ্রেপ্তার করে র‌্যাব। গ্রেপ্তারের পর হানিফ র‌্যাবকে জানিয়েছেন, তিনি উত্তর সিটি করপোরেশনের বেতনভুক্ত চাকরিজীবী না। সিটি করপোরেশনের গাড়ি থেকে তেল চুরি করে বিক্রিই হানিফের আয়ের উৎস।

দক্ষিণে গাড়ি ১৮৫, চালক ৯৫

বাসা, মার্কেট, প্রতিষ্ঠান থেকে ময়লা নিয়ে রাখা হয় সেকেন্ডারি ট্রান্সফার স্টেশনে। সেখান থেকে ময়লা সংগ্রহ করে ময়লাবাহী ভারী ট্রাক মাতুয়াইলে ভাগাড়ে ফেলে।

দক্ষিণ সিটি করপোরেশন জানিয়েছে, তাদের ময়লাবাহী ভারী ট্রাকের সংখ্যা ১৮৫। এর বিপরীতে তাদের নিয়োগ করা চালকের সংখ্যা ৯৫। এই ৯৫ জনের মধ্যে ১৯ জন গত মাসে নিয়োগ পেয়েছেন।

বাকি গাড়িগুলো দৈনিক মজুরি ভিত্তিতে সিটি করপোরেশনের বিভিন্ন কর্মচারী দিয়ে চালানো হয়।

সায়েদাবাদ বাসস্ট্যান্ডের পাশে দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের ময়লাবাহী গাড়ির স্ট্যান্ড। সোমবার ওই স্ট্যান্ডে গিয়ে কথা হয় কয়েকজন চালকের সঙ্গে। তারা জানান, পর্যাপ্ত চালক না থাকায় সিটি করপোরেশনের যেসব কর্মচারী গাড়ি চালাতে পারেন, তাদের দিয়ে ভারী ট্রাকগুলো চালানো হয়।

এ ছাড়া স্থায়ী নিয়োগপ্রাপ্ত কয়েকজন অসাধু চালক নিজেরা না চালিয়ে অন্যকে দিয়ে গাড়ি চালান।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের একজন পুরোনো চালক নিউজবাংলাকে বলেন, যারা প্রকৃত চালকের বদলি হিসেবে চালান, তারা কিছু টাকা ওই চালকের কাছ থেকে পান। বাকি টাকা বরাদ্দ তেলের অংশ বিক্রি করে তারা আয় করেন। সিটি করপোরেশন এদের কোনো টাকা দেয় না।

মহিউদ্দিন নামে এক চালক বলেন, ‘রাতে জ্যাম ঠেলে দুই থেকে তিনটি ট্রিপ দেয়া যায়। প্রতি ট্রিপ পৌঁছানোর পর স্লিপ দেয়া হয়। সেই স্লিপ অনুযায়ী আমরা তেল পাই। গড়ে এক থেকে দুই লিটার তেল থাকে।’

অনেক সময় গাড়ির কাজ নিজেকেই করাতে হয় বলে দাবি করেন এই চালক। এতে এই তেল বিক্রি করে পাওয়া টাকা ও গাড়ি মেরামতের খরচ সমান সমান হয়ে যায়।

মো. আলী নামে এক চালক বলেন, ‘আমাদের চালকের সংখ্যা কম, এটা সত্য। কিন্তু বর্তমান মেয়র উদ্যোগ নিলে এ সমস্যা থাকবে না। আমি ’৯৬ সাল থেকে গাড়ি চালাই। আমার গাড়ি কোনোদিন কাউকে দিইনি। অন্য কেউ দিলে সেটা আমার জানা নেই।’

এই চালকের সঙ্গে কথা বলার সময় এগিয়ে আসেন আরেক চালক। নাম প্রকাশ না করার শর্তে তিনি বলেন, অ্যাক্সিডেন্ট হওয়ার পর নিয়োগ পাওয়া সব চালকই গাড়ি চালাচ্ছেন। আগে তাদের অনেকে নিজেরা না চালিয়ে অন্যদের দিয়ে গাড়ি চালাতেন।

বাইরের চালকরা কীভাবে ট্রাক চালাচ্ছেন, জানতে চাইলে দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের জনসংযোগ কর্মকর্তা আবু নাছের নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আমাদের স্থায়ী নিয়োগ পাওয়া চালকদের বাইরে যারা গাড়ি চালান, তারাও সিটি করপোরেশনের কর্মচারী, অন্য কাজ করেন। বাড়তি হিসেবে দৈনিক মজুরিতে তারা ময়লার গাড়ি চালিয়ে থাকেন।’

দৈনিক মজুরিতে যারা গাড়ি চালান, তারা কত করে পান এবং প্রত্যেকের ভারী যান চালানোর লাইসেন্স আছে কি না সেই প্রশ্নের উত্তর দিতে পারেননি আবু নাছের।

চালক সংকট ও এই সংকট নিয়ে কীভাবে গাড়িগুলো চালানো হচ্ছে, জানতে চাইলে কোনো মন্তব্য করতে চাননি দক্ষিণ সিটির মহাব্যবস্থাপক (পরিবহন) বিপুল চন্দ্র বিশ্বাস।

নটর ডেম কলেজের শিক্ষার্থী নাঈম হাসান মৃত্যুর ঘটনায় দক্ষিণ সিটি করপোরেশন তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করেছে। এই কমিটিতে বিপুল চন্দ্র বিশ্বাসও রয়েছেন। গত ২৪ নভেম্বর করা কমিটিকে সাত কর্মদিবসের মধ্যে প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে। প্রতিবেদন জমার আগে কোনো মন্তব্য করতে চান না বিপুল চন্দ্র।

উত্তরে গাড়ি ১৪৭, চালক ৩৪

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনে ময়লা বহনকারী গাড়ির সংখ্যা ১৪৭। তাদের স্থায়ী নিয়োগপ্রাপ্ত চালক ৩৪ জন। এর বাইরে ৬৭ জন চালক আছেন, যারা মাস্টাররোলে চালক হিসেবে চাকরি করেন। বাকি ৪৬ জন দক্ষ শ্রমিক, যারা উত্তর সিটিতে চাকরি করেন। বাড়তি কাজ হিসেবে গাড়ি চালান।

১৪৭ জন চালকেরই গাড়ি চালানোর লাইসেন্স আছে বলে দাবি করেন ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মহাব্যবস্থাপক(পরিবহন) মিজানুর রহমান। তিনি নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আমাদের প্রত্যেক চালকের লাইসেন্স আছে। সেকেন্ডারি স্টেশন থেকে তারা রাতের বেলা গাড়িতে করে আমিনবাজার পেরিয়ে বুলিয়ারপুর ল্যান্ডফিল্ডে ময়লা ফেলে আসে।’

ময়লাবাহী গাড়িগুলো ভারী যান হলেও পান্থপথে গাড়িচাপায় একজনের মৃত্যুতে মারুফ নামে যে চালককে গ্রেপ্তার করা হয়েছে, তার ভারী গাড়ি চালানোর লাইসেন্স ছিল না। তার কাছে হালকা যান চালানোর লাইসেন্স ছিল।

তিনি কীভাবে ভারী গাড়ি চালাচ্ছিলেন? এমন প্রশ্নে মিজানুর রহমান বলেন, ‘এ বিষয়টা তদন্তনাধীন। তদন্ত শেষে বলা যাবে।’

ময়লাবাহী গাড়ি নিয়ে অব্যবস্থাপনার সঙ্গে যারা যারা যুক্ত, প্রত্যেককে বিচার এবং জবাবদিহিতার আওতায় নিয়ে আসার দাবি জানিয়েছেন বুয়েটের অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক ও পলিসি রিসার্চ ইনস্টিটিউটের পরিচালক অধ্যাপক সারওয়ার জাহান। তিনি নিউজবাংলাকে বলেন, ‘ময়লাবাহী গাড়িগুলোর বেপরোয়া চলাচল, উল্টোপথে যাওয়া, অদক্ষ চালক দিয়ে চালানো- সব অভিযোগ পুরোনো। এর ফলে প্রায়ই দুর্ঘটনা ঘটছে। শুধু চালক-শ্রমিক নন, যারা এই অব্যবস্থাপনার সঙ্গে যুক্ত, তাদের চিহ্নিত করে বিচার করতে হবে। যাদের অবহেলায় এগুলো হচ্ছে, তাদের জবাবদিহিতা নিশ্চিত করতে হবে।

আরও পড়ুন:
বড় পতন থেকে রক্ষা ‘হতাশার ব্যাংকে’
‘নিলাম আতঙ্ক’ কাটিয়ে ইতিহাসের পঞ্চম সর্বোচ্চ লেনদেন
তুমুল আগ্রহের রবি আর জ্বলেনি
স্কয়ার-বিকনের শেয়ারের সমান দাম কী বার্তা দেয়?

শেয়ার করুন

পাহাড়ে মৌলবাদী ও জঙ্গিবাদী শক্তি ঘাঁটি গড়ছে : মেনন

পাহাড়ে মৌলবাদী ও জঙ্গিবাদী শক্তি ঘাঁটি গড়ছে : মেনন

বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেনন। ফাইল ছবি

মেনন বলেন, ‘বান্দরবানের থানচির কাছে একটি অঞ্চলে দাওয়াতি ইসলাম ২০০৬ সাল থেকে তাদের কার্যক্রম শুরু করেছিল আটজনকে নিয়ে। সেখানে আর এই সশস্ত্র সংগঠন ১০৬ জনে কার্যক্রম চালায়। আমি আশা করি, সরকার নিশ্চয় এ ব্যাপারে ব্যবস্থা নেবে।’

পাহাড়ে মৌলবাদী ও জঙ্গিবাদী শক্তি ঘাঁটি গড়ছে বলে সতর্ক করেছেন বাংলাদেশের ওয়াকার্স পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেনন।

বৃহস্পতিবার পার্বত্য চট্টগ্রাম চুক্তির দুই যুগ পূর্তিতে রাজধানীর আগারগাওঁয়ে মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘর মিলনায়তনে এক আলোচনায় তিনি এই সতর্কতা করেন।

পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতি ও বাংলাদেশ আদিবাসী ফোরামের যৌথ আয়োজনে এই আলোচনায় মেনন বলেন, “পার্বত্য চট্টগ্রামকে কেন্দ্র করে আজকে দেশের জন্য আর একটি বিপদ অপেক্ষা করছে। সেটা হলো মৌলবাদী ও জঙ্গিবাদী শক্তি। পার্বত্য চট্টগ্রামে যারা বাঙালিদের মধ্যে যারা সেটেলার হয়েছেন তাদের মধ্যে জামায়াতে ইসলামের কার্যক্রম চালানো হচ্ছে। তারা নতুন সংগঠন গড়ে তুলেছে ‘উপজাতি মুসলিম নাগরিক পরিষদ’ নামে।”

তিনি বলেন, ‘বান্দরবানের থানচির কাছে একটি অঞ্চলে দাওয়াতি ইসলাম ২০০৬ সাল থেকে তাদের কার্যক্রম শুরু করেছিল আটজনকে নিয়ে। সেখানে আর এই সশস্ত্র সংগঠন ১০৬ জনে কার্যক্রম চালায়। আমি আশা করি, সরকার নিশ্চয় এ ব্যাপারে ব্যবস্থা নেবে।’

তিনি বলেন, ‘পার্বত্য চট্টগ্রামে রাজনৈতিক সমাধানই যদি উপলক্ষ্য হয়ে থাকে, তাহলে অবশ্যই সামরিক সমাধান থেকে দূরে থাকতে হবে। চুক্তির ধারাগুলোকে বাস্তবায়ন করতে হবে।’

মেনন বলেন, ‘২৪ বছর পর চুক্তি নিয়ে যে আনন্দ উচ্ছ্বাস থাকার কথা ছিল, তা আজ নেই বলে আমার মনে হয়।’

তিনি বলেন, ‘পার্বত্য চট্টগ্রাম শান্তি চুক্তির জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ইউনেস্কো শান্তি পুরস্কারও পেয়েছিলেন। কিন্তু আজ হয়তো সামরিক বন্দুকের জায়গায় অন্য কৌশল নেয়া হয়েছে। এই করোনার সময়েও অন্তত ২০টি ক্যাম্প প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে।’

কবি ও সাংবাদিক সোহরাব হাসান বলেন, ‘জনসংহতি সমিতির যে বক্তব্য আমরা দেখতে পাচ্ছি, সেখানে যতটা না ক্ষোভ তার চেয়ে আছে বেদনা ও হতাশা। এটার জন্য নিশ্চয় জনসংহতি সমিতি নয়, সরকারি পক্ষ যারা চুক্তি বাস্তবায়ন করছেন না, তারাই দায়ী। এটার জন্য তাদেরকে জবাবদিহি করতে হবে।’

বাংলাদেশ আদিবাসী ফোরামের সাধারণ সম্পাদক সঞ্জীব দ্রংয়ের সঞ্চালনায় এ সময় বক্তব্য রাখেন পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতি এবং বাংলাদেশ আদিবাসী ফোরামের সভাপতি জ্যোতিরিন্দ্র বোধিপ্রিয় লারমা (সন্তু লারমা) এবং ঐক্য ন্যাপের সভাপতি পঙ্কজ ভট্টাচার্য।

এছাড়া পার্বত্য চট্টগ্রাম কমিশনের কো-চেয়ার সুলতানা কামাল, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক অধ্যাপক মেসবাহ কামাল ও সাদেকা হালিম, আইনজীবী সারা হোসেন এবং বাংলাদেশ হিন্দু, বৌদ্ধ, খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদের নেতা কাজল দেবনাথও এতে বক্তব্য রাখেন।

আরও পড়ুন:
বড় পতন থেকে রক্ষা ‘হতাশার ব্যাংকে’
‘নিলাম আতঙ্ক’ কাটিয়ে ইতিহাসের পঞ্চম সর্বোচ্চ লেনদেন
তুমুল আগ্রহের রবি আর জ্বলেনি
স্কয়ার-বিকনের শেয়ারের সমান দাম কী বার্তা দেয়?

শেয়ার করুন

রমনা পার্কে হাঁটতে গিয়ে বাইকের ধাক্কায় নারীর মৃত্যু

রমনা পার্কে হাঁটতে গিয়ে বাইকের ধাক্কায় নারীর মৃত্যু

লকডাউনে দীর্ঘ সময় রমনা পার্ক বন্ধ থাকার পর গত ১৮ জুন বিনোদন ও শরীরচর্চার জন্য সীমিত আকারে খুলে দেয়া হয়। এসময় পার্কে নানা বয়সীদের উপস্থিতি ছিল চোখে পড়ার মতো। ছবি: সাইফুল ইসলাম

ওই নারীর সঙ্গে থাকা তার বান্ধবী কল্পনা রানী বলেন, ‘আমরা প্রতিদিন বিকেলে রমনা পার্কে হাঁটাহাঁটি করি। হাঁটাহাঁটি শেষে বাসায় যাওয়ার সময় দুজনেই রাস্তা পার হচ্ছিলাম। আমি ছিলাম একটু সামনে সে আমার পেছনে। হঠাৎ শব্দ পেয়ে পেছনে তাকিয়ে দেখি তৃষ্ণাকে একটি দ্রুতগতির মোটরসাইকেল ছেঁচড়ে সামনের দিকে নিয়ে যাচ্ছে। গুরুতর আহত অবস্থায় পরে তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যাই।’

রাজধানীর রমনা পার্কে হাঁটাহাঁটি শেষে বাসায় ফেরার পথে মোটরসাইকেলের ধাক্কায় তৃষ্ণা সাহা নামের এক নারী নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় মোটরসাইকেল জব্দ ও চালককে আটক করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার বিকেল ৫টার দিকে ঘটনাটি ঘটে। প্রত্যক্ষদর্শী ও পথচারীরা তাকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে জরুরী বিভাগে নিয়ে গেলে চিকিৎসক পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর ৬টা ৩৬ মিনিটে তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

ওই নারীর সঙ্গে থাকা তার বান্ধবী ও সিদ্ধেশ্বরী এলাকার বাসিন্দা কল্পনা রানী বলেন, ‘আমরা প্রতিদিন বিকেলে রমনা পার্কে হাঁটাহাঁটি করি। হাঁটাহাঁটি শেষে বাসায় যাওয়ার সময় দুজনেই রাস্তা পার হচ্ছিলাম। আমি ছিলাম একটু সামনে সে আমার পেছনে। হঠাৎ শব্দ পেয়ে পেছনে তাকিয়ে দেখি তৃষ্ণাকে একটি দ্রুতগতির মোটরসাইকেল ছেঁচড়ে সামনের দিকে নিয়ে যাচ্ছে। গুরুতর আহত অবস্থায় পরে তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যাই।’

তিনি বলেন, তৃষ্ণা সাহার বাসা বিজয়নগর এলাকায়। তার স্বামীর নাম উত্তম সাহা। তিনি একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে চাকরি করেন। দুই মেয়ের জননী ছিলেন তিনি। তার গ্রামের বাড়ি টাঙ্গাইলে। তিনি বলেন, তার পরিবারকে সংবাদ দেয়া হয়েছে।

মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেন ঢামেক হাসপাতাল পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ (পরিদর্শক) বাচ্চু মিয়া বলেন চালককে আটক এবং মোটরসাইকেল জব্দ করা হয়েছে মৃতদেহটি ময়না তদন্তের জন্য হাসপাতাল মর্গে রাখা হয়েছে। বিষয়টি সংশ্লিষ্ট থানা অবগত রয়েছে।

আরও পড়ুন:
বড় পতন থেকে রক্ষা ‘হতাশার ব্যাংকে’
‘নিলাম আতঙ্ক’ কাটিয়ে ইতিহাসের পঞ্চম সর্বোচ্চ লেনদেন
তুমুল আগ্রহের রবি আর জ্বলেনি
স্কয়ার-বিকনের শেয়ারের সমান দাম কী বার্তা দেয়?

শেয়ার করুন

ইয়াবাসহ গ্রেপ্তার দারাজের ডেলিভারি ম্যান-গা‌ড়িচালক

ইয়াবাসহ গ্রেপ্তার দারাজের ডেলিভারি ম্যান-গা‌ড়িচালক

বরিশালে ইয়াবাসহ গ্রেপ্তার দারাজের গাড়িচালক ও ডেলিভারি ম্যান। ছবি: নিউজবাংলা

বাবুগঞ্জ থানার ওসি মাহাবুবুর রহমান বলেন, ‘গোপন তথ্যের ভিত্তিতে জানতে পারি যে দারাজের ডেলিভারি ভ্যানে ইয়াবা আছে... কাভার্ডভ্যান ব্রিজে উঠলে সেটি আটক করা হয়। গাড়ি তল্লাশি চালিয়ে চালকের আসনের সিট কভারের ভেতর থেকে কাগজে মোড়ানো ইয়াবা জব্দ করা হয়।’

ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান দারাজের পণ্য সরবরাহের গাড়ি থেকে ইয়াবাসহ গ্রেপ্তার করা হয়েছে চালক ও ডেলিভারি ম্যানকে।

নগরীর বাবুগঞ্জের স্টিল ব্রিজ এলাকায় বৃহস্পতিবার দুপুরে অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করা হয়। পরে থানায় নিয়ে মাদকের মামলা দেয়া হয় তাদের নামে।

আটক ব্যক্তিরা হলেন গাড়িচালক গকুল চন্দ্র ও ডেলিভারি ম্যান শাহাদাত হোসেন।

বাবুগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাহাবুবুর রহমান তথ্যগুলো নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, ‘গোপন তথ্যের ভিত্তিতে জানতে পারি যে দারাজের ডেলিভারি ভ্যানে ইয়াবা আছে। আমরা ফোর্স নিয়ে রহমতপুর-মীরগঞ্জ সড়কের স্টিল ব্রিজে অবস্থান নিই।

‘কিছুক্ষণ পরই দারাজের ডেলিভারির একটি কাভার্ডভ্যান ব্রিজে উঠলে সেটি আটক করা হয়। গাড়ি তল্লাশি চালিয়ে চালকের আসনের সিট কভারের ভেতর থেকে কাগজে মোড়ানো ১০ পিস ইয়াবা জব্দ করা হয়।’

আরও পড়ুন:
বড় পতন থেকে রক্ষা ‘হতাশার ব্যাংকে’
‘নিলাম আতঙ্ক’ কাটিয়ে ইতিহাসের পঞ্চম সর্বোচ্চ লেনদেন
তুমুল আগ্রহের রবি আর জ্বলেনি
স্কয়ার-বিকনের শেয়ারের সমান দাম কী বার্তা দেয়?

শেয়ার করুন