‘১২ টাকার’ দাম ৬ টাকা ৯০ পয়সা!

‘১২ টাকার’ দাম ৬ টাকা ৯০ পয়সা!

পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত কিছু মিউচ্যুয়াল ফান্ডের দাম তার সম্পদমূল্যের চেয়ে কমে পাওয়া যাচ্ছে।

পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত মিউচ্যুয়াল ফান্ডের মধ্যে ২৬টির দাম তার সম্পদমূল্যের চেয়ে কমে পাওয়া যাচ্ছে। এমনকি সম্পদমূল্যের ৪০ শতাংশ কমেও পাওয়া যাচ্ছে দুটি। এই বিষয়টি যে অস্বাভাবিক, সেটি অতালিকাভুক্ত ফান্ডের সম্পদমূল্য আর বাজারমূল্য দেখলেই বোঝা যায়। অতালিকাভুক্ত ফান্ডগুলোর সম্পদ যত এটি কিনতে হয় তত দামেই।

১২ টাকার সম্পদ কোথাও ৭ টাকা বা তার চেয়ে কমে কেনা যায়?

এটি যদি বাংলাদেশের পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত কোনো মিউচ্যুয়াল ফান্ড হয়, তাহলে পারা যায়।

তালিকাভুক্ত পপুলার লাইফ ফার্স্ট মিউচ্যুয়াল ফান্ডের সম্পদমূল্য আছে ১১ টাকা ৯৮ পয়সা। কিন্তু দাম এখন ৬ টাকা ৯০ পয়সা।

বিভিন্ন ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে টাকা তুলে এই ফান্ডগুলো পুঁজিবাজার বা বাইরে বিনিয়োগ করে। আর বছর শেষে মুনাফা লভ্যাংশ হিসেবে বিতরণ করে। আর লোকসান হলে সেটি বিতরণ করা সম্ভব হয় না।

২০১০ সালে পুঁজিবাজারে ধসের পর এই মিউচ্যুয়াল ফান্ডগুলো আশানুরূপ লভ্যাংশ দিতে পারেনি, আর এ কারণে এই ফান্ডগুলোর প্রতি আগ্রহ হারাতে থাকে বিনিয়োগকারীরা। আর একপর্যায়ে সম্পদমূল্যের চেয়ে অনেক নিচে নেমে আসে দাম।

তবে গত এক বছরে চাঙা পুঁজিবাজারে ফান্ডগুলো ব্যাপক মুনাফা করার হিসাব দিচ্ছে। আর এ কারণে ফান্ড কেনায় আগ্রহ দেখাচ্ছেন বিনিয়োগকারীরা। দামও বাড়ছে ইউনিটের।

তারপরেও দেখা যাচ্ছে, তালিকাভুক্ত অনেক ফান্ড সম্পদমূল্যের ৪০ শতাংশ কমে পর্যন্ত লেনদেন হচ্ছে।

‘১২ টাকার’ দাম ৬ টাকা ৯০ পয়সা!

অথচ যেসব ফান্ড বাজারে তালিকাভুক্ত হয়নি, সেগুলোর ক্ষেত্রে উল্টো চিত্র। সম্পদমূল্যের সমান বা আশপাশেই ক্রয়-বিক্রয় হয় সেসব ফান্ড।

মিউচ্যুয়াল ফান্ডের ইউনিটপ্রতি দরের চেয়ে সম্পদমূল্য বেশি হলে সেই ফান্ডকে বিনিয়োগ উপযোগী হিসেবে বিনিয়োগ পরামর্শ দেয়া হয়।

বিষয়টি নিয়ে পুঁজিবাজারে বিনিয়োগ প্রতিষ্ঠান ব্র্যাক ইপিএল ইনভেস্টমেন্ট লিমিটেডের সাবেক প্রধান গবেষণা কর্মকর্তা দেবব্রত কুমার সরকার নিউজবাংলাকে বলেন, মেয়াদি মিউচ্যুয়াল ফান্ডগুলোর মেয়াদ শেষ হয় বন্ধ হয়ে যাবে নয়তো বেমেয়াদিতে রূপান্তর হবে। এ খাতে যারা বিনিয়োগ করে তাদের প্রত্যাশা হচ্ছে বছর শেষে কী রিটার্ন দিচ্ছে। ফলে ভালো রিটার্ন না পেলে বিনিয়োগকারীরা সেখানে বিনিয়োগ করতে চান না।

কিন্তু যে বছর তালিকুভক্ত ফান্ডগুলো লভ্যাংশ দিতে পারেনি, সে বছর বেমেয়াদিগুলোও লভ্যাংশ দিতে পারেনি। তাহলে সেগুলোর দাম কেন তালিকাভুক্তগুলোর চেয়ে বেশি- এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, বেমেয়াদিগুলোতে আগ্রহ বেশি থাকে। কারণ, এখানে প্রতিযোগিতা আছে, কার চেয়ে কে বেশি ডিভিডেন্ডে দিতে পারে। এখানে হিসাবেরও স্বচ্ছতা মেয়াদিগুলোর চেয়ে বেশি।

পুঁজিবাজারে বর্তমানে লেনদেন হওয়া ৩৭টি মিউচ্যুয়াল ফান্ডের মধ্যে ১ টির মেয়াদ শেষ হয়ে যাওয়ায় লেনদেনে আছে ৩৬টি ফান্ড।

‘১২ টাকার’ দাম ৬ টাকা ৯০ পয়সা!

সব কটি মিউচ্যুয়াল ফান্ড এরই মধ্যে তাদের ৩০ জুনের ক্লোজিং হিসাব অনুযায়ী সম্পদমূল্য প্রকাশ করেছে। এ ছাড়া এরই মধ্যে এক সপ্তাহের ৮ জুলাই পর্যন্তও তাদের সম্পদমূল্য প্রকাশ করেছে।

সেখানে দেখা গেছে ১০টি ফান্ডের ইউনিটপ্রতি দর ৮ জুলাই প্রকাশ করা সম্পদমূল্যের তুলনায় বেশি। বাকি ২৬টির দর কম।

সম্পদমূল্যের চেয়ে কম যেগুলোর

পপুলার লাইফ ফার্স্ট মিউচ্যুয়াল ফান্ডের সম্পদ মূল্য ১১ টাকা ৯৮ পয়সা। লেনদেন হচ্ছে ৬ টাকা ৯০ পয়সায়। সম্পদমূল্যের চেয়ে ৪২ দশমিক ৪০ শতাংশ কম দামে লেনদেন হচ্ছে ফান্ডটি।

ফার্স্ট বাংলাদেশ ফিক্সড ইনকাম ফান্ডের সম্পদমূল্য ১১ টাকা ৭৯ পয়সা। লেনদেন হচ্ছে ৬ টাকা ৯০ পয়সায়। সম্পদ মূল্যের চেয়ে ৪১.৪৭ শতাংশ কম দামে লেনদেন হচ্ছে ফান্ডটি।

পিএইচপি ফার্স্ট মিউচ্যুয়াল ফান্ডের সম্পদ মূল্য ১১ টাকা ৯৫ পয়সা। লেনদেন হচ্ছে ৭ টাকা ৫০ পয়সায়। সম্পদ মূল্যের চেয়ে ৩৭ দশমিক ২৩ শতাংশ কম দামে লেনদেন হচ্ছে ফান্ডটি।

ট্রাস্ট ব্যাংক ফার্স্ট মিউচ্যুয়াল ফান্ডের সম্পদমূল্য ১২ টাকা ৪ পয়সা। লেনদেন হচ্ছে ৭ টাকা ৬০ পয়সায়। সম্পদমূল্যের চেয়ে ৩৬.৮৭ শতাংশ কম দামে লেনদেন হচ্ছে ফান্ডটি।

‘১২ টাকার’ দাম ৬ টাকা ৯০ পয়সা!

এবিব্যাংক ফার্স্ট মিউচ্যুয়াল ফান্ডের সম্পদমূল্য ১২ টাকা ৯ পয়সা। লেনদেন হচ্ছে ৭ টাকা ৭০ পয়সায়। সম্পদমূল্যের চেয়ে ৩৬ দশমিক ৩১ শতাংশ কম দামে লেনদেন হচ্ছে ফান্ডটি।

ইবিএল এনআরবি মিউচ্যুয়াল ফান্ডের সম্পদ মূল্য ১২ টাকা ৩৭ পয়সা। লেনদেন হচ্ছে ৭ টাকা ৯০ পয়সায়। সম্পদমূল্যের চেয়ে ৩৬ দশমিক ১৩ শতাংশ কম দামে লেনদেন হচ্ছে ফান্ডটি।

আইএফআইসি ব্যাংক ফার্স্ট মিউচ্যুয়াল ফান্ডের সম্পদমূল্য ১১ টাকা ৫৮ পয়সা। লেনদেন হচ্ছে ৭ টাকা ৫০ পয়সায়। সম্পদমূল্যের চেয়ে ৩৫ দশমিক ২৩ শতাংশ কম দামে লেনদেন হচ্ছে ফান্ডটি।

এলআর গ্লোবাল বাংলাদেশ মিউচ্যুয়াল ফান্ড ওয়ান সম্পদমূল্য ১২ টাকা ৪২ পয়সা। লেনদেন হচ্ছে ৮ টাকা ৪০ পয়সায়। সম্পদমূল্যের চেয়ে ৩২ দশমিক ৩৬ শতাংশ কম দামে লেনদেন হচ্ছে ফান্ডটি।

ফার্স্ট জনতা ব্যাংক মিউচ্যুয়াল ফান্ডের ৮ জুলাই পর্যন্ত সম্পদমূল্য ১১ টাকা ৯৫ পয়সা। লেনদেন হচ্ছে ৮ টাকা ২০ পয়সায়। সম্পদমূল্যের চেয়ে ৩১ দশমিক ৩৮ শতাংশ কম দামে লেনদেন হচ্ছে ফান্ডটি।

ভ্যানগার্ড এএমএল বিডি ফিন্যান্স মিউচ্যুয়াল ফান্ড ওয়ান সম্পদমূল্য ১২ টাকা ৯২ পয়সা। লেনদেন হচ্ছে ৯ টাকা ৫০ পয়সায়। সম্পদমূল্যের চেয়ে ২৬ দশমিক ৪৭ শতাংশ কম দামে লেনদেন হচ্ছে ফান্ডটি।

এনসিসিবিএল মিউচ্যুয়াল ফান্ড ওয়ান সম্পদমূল্য ১১ টাকা ৯০ পয়সা। লেনদেন হচ্ছে ৮ টাকা ৯০ পয়সায়। সম্পদমূল্যের চেয়ে ২৫ দশমিক ২১ শতাংশ কম দামে লেনদেন হচ্ছে ফান্ডটি।

‘১২ টাকার’ দাম ৬ টাকা ৯০ পয়সা!

এমবিএল ফার্স্ট মিউচ্যুয়াল ফান্ডের সম্পদমূল্য ১১ টাকা ২৮ পয়সা। লেনদেন হচ্ছে ৮ টাকা ৬০ পয়সায়। সম্পদমূল্যের চেয়ে ২৩ দশমিক ৭৫ শতাংশ কম দামে লেনদেন হচ্ছে ফান্ডটি।

আইএফআইএল ইসলামী মিউচ্যুয়াল ফান্ডের সম্পদমূল্য ৯ টাকা ৫০ পয়সা। লেনদেন হচ্ছে ৭ টাকা ৪০ পয়সায়। সম্পদমূল্যের চেয়ে ২২ দশমিক ১০ শতাংশ কম দামে লেনদেন হচ্ছে ফান্ডটি।

ইবিএল ফার্স্ট মিউচ্যুয়াল ফান্ডের সম্পদমূল্য ১১ টাকা ৭৫ পয়সা। লেনদেন হচ্ছে ৯ টাকা ২০ পয়সায়। সম্পদমূল্যের চেয়ে ২১ দশমিক ৭০ শতাংশ কম দামে লেনদেন হচ্ছে ফান্ডটি।

গ্রিনডেল্টা মিউচ্যুয়াল ফান্ডের সম্পদমূল্য ১১ টাকা ৮০ পয়সা। লেনদেন হচ্ছে ৯ টাকা ৩০ পয়সায়। সম্পদমূল্যের চেয়ে ২১ দশমিক ১৮ শতাংশ কম দামে লেনদেন হচ্ছে ফান্ডটি।

ডিবিএইচ ফার্স্ট মিউচ্যুয়াল ফান্ডের সম্পদমূল্য ১১ টাকা ৮৫ পয়সা। লেনদেন হচ্ছে ৯ টাকা ৪০ পয়সায়। সম্পদমূল্যের চেয়ে ২০ দশমিক ৬৭ শতাংশ কম দামে লেনদেন হচ্ছে ফান্ডটি।

এক্সিম ব্যাংক ফার্স্ট মিউচ্যুয়াল ফান্ডের সম্পদমূল্য ১২ টাকা ১৩ পয়সা। লেনদেন হচ্ছে ৯ টাকা ৩০ পয়সায়। সম্পদমূল্যের চেয়ে ২৩ দশমিক ৩৩ শতাংশ কম দামে লেনদেন হচ্ছে ফান্ডটি।

প্রাইম ব্যাংক ফার্স্ট আইসিবি এএমসিএল মিউচ্যুয়াল ফান্ডের সম্পদমূল্য ১০ টাকা ২৯ পয়সা। লেনদেন হচ্ছে ৮ টাকা ৩০ পয়সায়। সম্পদমূল্যের চেয়ে ১৯ দশমিক ৩৩ শতাংশ কম দামে লেনদেন হচ্ছে ফান্ডটি।

ভ্যানগার্ড এএমএল রূপালী ব্যাংক ব্যালেন্স ফান্ডের সম্পদমূল্য ১১ টাকা ৫৪ পয়সা। লেনদেন হচ্ছে ৯ টাকা ৪০ পয়সায়। সম্পদমূল্যের চেয়ে ১৮ দশমিক ৫৪ শতাংশ কম দামে লেনদেন হচ্ছে ফান্ডটি।

আইসিবি এএমসিএল থার্ড এনআরবি মিউচ্যুয়াল ফান্ডের সম্পদমূল্য ৯ টাকা ৩৮ পয়সা। লেনদেন হচ্ছে ৭ টাকা ৭০ পয়সায়। সম্পদমূল্যের চেয়ে ১৭ দশমিক ৯১ শতাংশ কম দামে লেনদেন হচ্ছে ফান্ডটি।

‘১২ টাকার’ দাম ৬ টাকা ৯০ পয়সা!

আইসিবি এএমসিএল ফার্স্ট অগ্রণী ব্যাংক মিউচ্যুয়াল ফান্ডের সম্পদমূল্য ১১ টাকা ১৪ পয়সা। লেনদেন হচ্ছে ৯ টাকা ৫০ পয়সায়। সম্পদমূল্যের চেয়ে ১৪ দশমিক ৭২ শতাংশ কম দামে লেনদেন হচ্ছে ফান্ডটি।

এআইবিএল ফার্স্ট ইসলামী মিউচ্যুয়াল ফান্ডের সম্পদমূল্য ১০ টাকা ৮১ পয়সা। লেনদেন হচ্ছে ৯ টাকা ৫০ পয়সায়। সম্পদমূল্যের চেয়ে ১২ দশমিক ২৮ শতাংশ কম দামে লেনদেন হচ্ছে ফান্ডটি।

আইসিবি এমপ্লয়ি প্রভিডেন্ট মিউচ্যুয়াল ফান্ড ওয়ান, স্কিম ওয়ানের সম্পদমূল্য ৯ টাকা ৫২ পয়সা। লেনদেন হচ্ছে ৮ টাকা ৬০ পয়সায়। সম্পদমূল্যের চেয়ে ৯ দশমিক ৬৬ শতাংশ কম দামে লেনদেন হচ্ছে ফান্ডটি।

আইসিবি এএমসিএল সোনালী ব্যাংক লিমিটেড ফার্স্ট মিউচ্যুয়াল ফান্ডের সম্পদমূল্য ১০ টাকা ৫০ পয়সা। লেনদেন হচ্ছে ৯ টাকা ৫০ পয়সায়। সম্পদমূল্যের চেয়ে ৯ দশমিক ৫২ শতাংশ কম দামে লেনদেন হচ্ছে ফান্ডটি।

রিলায়েন্স ওয়ান ফার্স্ট মিউচ্যুয়াল ফান্ডের সম্পদমূল্য ১৪ টাকা ৭৬ পয়সা। লেনদেন হচ্ছে ১৩ টাকা ৫০ পয়সায়। সম্পদমূল্যের চেয়ে ৮ দশমিক ৫৩ শতাংশ কম দামে লেনদেন হচ্ছে ফান্ডটি।

গ্রামীণ ওয়ান, স্কিম টু ফান্ডের সম্পদমূল্য ২০ টাকা ৮৬ পয়সা। লেনদেন হচ্ছে ১৯ টাকা ৩০ পয়সায়। সম্পদমূল্যের চেয়ে ৭ দশমিক ৪৭ শতাংশ কম দামে লেনদেন হচ্ছে ফান্ডটি।

সম্পদমূল্যের চেয়ে ইউনিটের দর বেশি

সিএপিএম আইবিবিএল ইসলামী মিউচ্যুয়াল ফান্ডের ইউনিটপ্রতি দর বৃহস্পতিবার ছিল ২৪ টাকা ৬০ পয়সা। ফান্ডটির ৮ জুলাই পর্যন্ত সম্পদমূল্য ১২ টাকা ২৮ পয়সা। সম্পদমূল্যের চেয়ে ১০০ দশমিক ৩২ শতাংশ বেশি দরে লেনদেন হচ্ছে ফান্ডটি।

প্রাইম ফিন্যান্স ফার্স্ট মিউচ্যুয়াল ফান্ডের ৮ জুলাই সময়ে সম্পদমূল্য প্রকাশ করা হয়েছে ১৪ টাকা ৩৪ পয়সা। বৃহস্পতিবার ফান্ডটির ক্লোজিং প্রাইস ছিল ২০ টাকা ৪০ পয়সা। ফলে ফান্ডটির সম্পদমূল্যের চেয়ে ৪২ দশমিক ২৫ শতাংশ বেশি দরে লেনদেন হচ্ছে।

আইসিবি এএমসিএল সেকেন্ড মিউচ্যুয়াল ফান্ডের সম্পদমূল্য ১০ টাকা ৫৪ পয়সা। লেনদেন হচ্ছে ১২ টাকা ৮০ পয়সায়। ফলে সম্পদমূল্যের চেয়ে ২১ দশমিক ৪৪ শতাংশ বেশি দরে লেনদেন হচ্ছে ফান্ডটি।

এসইএমএল আইবিবিএল শরিয়াহ ফান্ডের ইউনিটপ্রতি দর ১৩ টাকা ৬০ পয়সা, ইউনিটপ্রতি সম্পদমূল্য ১১ টাকা ৩৬ পয়সা। সম্পদমূল্যের চেয়ে বাজারমূল্য বেশি ১৯ দশমিক ৭১ শতাংশ।

সিএপিএম বিডিবিএল মিউচ্যুয়াল ফান্ড ওয়ানের সম্পদমূল্য ১২ টাকা ৮ পয়সা। ফান্ডটির ইউনিটপ্রতি দর বৃহস্পতিবার ছিল ১৪ টাকা ৪০ পয়সা। সম্পদমূল্যের চেয়ে ১৯ দশমিক ২০ শতাংশ বেশি দরে লেনদেন হচ্ছে ফান্ডটি।

ফিনিক্স ফিন্যান্স ফার্স্ট মিউচ্যুয়াল ফান্ডের বৃহস্পতিবার ইউনিটপ্রতি দর ছিল ১১ টাকা ৫০ পয়সা। সর্বশেষ প্রকাশিত তথ্যে বলা হয়েছে, ইউনিটপ্রতি ফান্ডটির সম্পদ ৯ টাকা ৮০ পয়সা। ফলে সম্পদমূল্যের চেয়ে ১৭ দশমিক ৩৪ শতাংশ বেশি দরে লেনদেন হচ্ছে ফান্ডটি।

‘১২ টাকার’ দাম ৬ টাকা ৯০ পয়সা!

এনএলআই ফার্স্ট মিউচ্যুয়াল ফান্ডের সম্পদমূল্য ১৫ টাকা ৩৯ পয়সা। ফান্ডটি লেনদেন হচ্ছে ১৬ টাকা ৯০ পয়সায়। ফলে সম্পদমূল্যের চেয়ে ৯ দশমিক ৮১ শতাংশ বেশি দরে লেনদেন হচ্ছে ফান্ডটি।

এসইএম লেকচার ইক্যুইটি ম্যানেজমেন্ট ফান্ডের ইউনিট প্রতি দর ১২ টাকা ৮০ পয়সা, ইউনিটপ্রতি সম্পদমূল্য ১১ টাকা ৮৫ পয়সা। সম্পদমূল্যের চেয়ে বাজারমূল্য বেশি ৮ দশমিক ০১ শতাংশ।

এশিয়ান টাইগার সন্ধানী লাইফ গ্রোথ ফান্ডের ৮ জুলাই পর্যন্ত সম্পদমূল্য ১২ টাকা ৫৫ পয়সা। বৃহস্পতিবার ফান্ডটির ইউনিটপ্রতি দর ছিল ১৩ টাকা ৫০ পয়সা। সম্পদমূল্যের চেয়ে ৭ দশমিক ৫৬ শতাংশ বেশে দরে লেনদেন হচ্ছে ফান্ডটি।

এসইএমএল এফবিএলএসএল গ্রোথ ফান্ডের ইউনিটপ্রতি দর ১২ টাকা ৮০ পয়সা, ইউনিটপ্রতি সম্পদমূল্য ১২ টাকা ৩৮ পয়সা। সম্পদমূল্যের চেয়ে বাজারমূল্য বেশি ৩ দশমিক ৩৯ শতাংশ।

অতালিকাভুক্তগুলোর সম্পদ ও বাজারমূল্য সমান

৮ জুলাই সবশেষ প্রকাশিত হিসাব অনুযায়ী আইডিএলসি ব্যালান্সড ফান্ডের ইউনিটপ্রতি সম্পদমূল্য আছে ১২ টাকা ৯০ পয়সা। এটিই ক্রয় ও বিক্রয়মূল্য।

একই সময়ে আইডিএলসি গ্রোথ ফান্ডেরর সম্পদমূল্য ছিল ১৩ টাকা ৩৪ পয়সা। এর ক্রয় ও বিক্রয়মূল্য একই।

আইডিএলসি অ্যাসেট ম্যানেজমেন্ট শরিয়াহ ফান্ডের ইউনিটপ্রতি সম্পদমূল্য ১২ টাকা ৪৬ পয়সা। ক্রয় ও বিক্রয়মূল্যও একই।

আইডিএলসি ইনকাম ফান্ডের সম্পদমূল্য আছে ১০ টাকা ২ পয়সা। কেউ কিনতে চাইলে এই পরিমাণ টাকাই দিতে হবে। বিক্রি করলেও পাবেন সমপরিমাণই।

শান্তা ফার্স্ট ইনকাম ইউনিট ফান্ডের সম্পদমূল্য এখন ১৪ টাকা ১২ পয়সা। এটিরও ক্রয়মূল্য ও বিক্রয়মূল্যে কোনো পার্থক্য নেই।

শান্তা আমানাহ শরিয়া ফান্ডের সম্পদূমূল্য ১২ টাকা ৪৮ পয়সা। এরও ক্রয় ও বিক্রয়মূল্যে কোনো পার্থক্য নেই।

আরও পড়ুন:
মিউচ্যুয়াল ফান্ড: দিনবদলের আরও আভাস
পতনের দিনে আগ্রহ মিউচ্যুয়াল ফান্ডে
মিউচ্যুয়াল ফান্ডের সম্পদমূল্য বৃদ্ধিতে চমক
ব্যাংক, বিমা, বস্ত্রে ধসে উজ্জ্বল মিউচ্যুয়াল ফান্ড
অর্থবছর শেষ হওয়ার এক বছর পর লভ্যাংশ ঘোষণার সভা

শেয়ার করুন

মন্তব্য