× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

পুঁজিবাজার
জাপানি মিনোরিতে আবার জাগবে এমারেল্ডের স্পন্দন
hear-news
player
google_news print-icon

জাপানি মিনোরিতে আবার জাগবে এমারেল্ডের স্পন্দন

জাপানি-মিনোরিতে-আবার-জাগবে-এমারেল্ডের-স্পন্দন
এমারেল্ড অয়েলের ধানের কুঁড়ার তেল স্পন্দন বছর পাঁচেক আগে বেশ সাড়া জাগিয়েছিল।
২০১৬ সালের ২৭ জুন বন্ধ হয়ে যাওয়া এমারেল্ড অয়েল কোম্পানিতে জাপানি বিনিয়োগের সম্ভাবনা তৈরি হয়েছে। দুই বছর আগেই কোম্পানিটির উল্লেখযোগ্য সংখ্যক শেয়ার কিনেছে তারা। আগে থেকেই বাংলাদেশে ব্যবসা করা প্রতিষ্ঠানটি এখানে ৫০ কোটি টাকা বিনিয়োগ করতে চায়।

পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত খাদ্য ও আনুষাঙ্গিক খাতের এমারেল্ড অয়েলের ব্যবস্থাপনায় জাপানি একটি প্রতিষ্ঠানকে যুক্ত করার আলোচনা অনেকটাই এগিয়ে গেছে।

জাপানের মিনোরি বাংলাদেশ লিমিটেড ২০১৯ সালে কোম্পানিটির ৮ শতাংশ শেয়ার কিনেছিল। প্রায় পাঁচ বছর আগে বন্ধ হয়ে যাওয়া কোম্পানিটিকে তাদের মাধ্যমেই আবার চালু করার স্বপ্ন দেখছে পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিএসইসি।

তবে কোম্পানিটির ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানের ঋণ সুদে আসলে বেড়ে ১০০ কোটি টাকার মতো হয়ে গেছে। এখন ব্যাংকের সঙ্গে আলোচনা করে সুদ মওকুফের চেষ্টা চলছে। সেটি হয়ে গেলেই কোম্পানিটিকে উৎপাদনে আনার চেষ্টা হবে বলে জানিয়েছেন এই উদ্যোগে সম্পৃক্ত একজন কর্মকর্তা।

পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিএসইসির চেয়ারম্যান শিবলী রুবাইয়াত উল ইসলাম খুবই আশাবাদী কোম্পানিটিকে নিয়ে। তারা যেসব বোর্ড পুনর্গঠন করেছিলেন, তার মধ্যে রিং সাইনও আলহাজ্ব টেক্সটাইল এরই মধ্যে উৎপাদন শুরু করেছে।

শিবলী রুবাইয়াত নিউজবাংলাকে সেই বিষয়টি উল্লেখ করে বলেন, ‘রিং সাইন প্রোডাকশনের চলে আসছে। এমারেল্ড অয়েলও প্রোডাকশনে চলে আসার প্রস্তুতি নিচ্ছে।’

বন্ধ ও মালিক লাপাত্তা কোম্পানিগুলোর মধ্যে বেশ কয়েকটির বোর্ড পুনর্গঠন করে বিএসইসি চেষ্টা করছে সেগুলোকে চালু করার।

এই প্রক্রিয়ার অংশ হিসেবে গত ৩ মার্চ সাবেক সিনিয়র সচিব মোহাম্মদ শহিদুল হককে চেয়ারম্যান করে নতুন বোর্ড করা হয়। পর্ষদের অন্যান্য স্বাধীন পরিচালকরা হচ্ছেন বিআইবিএমের প্রশান্ত কুমার ব্যানার্জি, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক গোলাম সারওয়ার, সজিব হোসেইন ও সন্তোষ কুমার দেব।

কোম্পানি চালুর বিষয়ে অগ্রগতি জানতে চাইলে গোলাম সারওয়ার মন্তব্য করতে রাজি হননি। পরে বিএসইসির একজন নির্বাহী পরিচালক নিউজবাংলাকে বলেন, ‘জাপানি কোম্পানিটি এরই মধ্যে ৮ শতাংশ শেয়ার কিনেছে। আরও ২৫ শতাংশ নেয়ার চেষ্টায় আছে তারা।’

কোম্পানিটি ২০১৪ সালে ১০ টাকা করে অভিহিত মূল্যে দুই কোটি শেয়ার বিক্রি করে ২০ কোটি টাকা সংগ্রহ করে পুঁজিবাজার থেকে।

দুই বছর পর রাষ্ট্রায়াত্ত বেসিক ব্যাংকের ঋণ কেলেঙ্কারি মামলার কারণে ২০১৬ সালের ২৭ জুন থেকে উৎপাদন বন্ধ রয়েছে এমারেল্ড অয়েলের।

শেরপুরে কোম্পানিটির কারখানা রয়েছে। তারা স্পন্দন নামে ধানের কুঁড়ার তেল উৎপাদন করত। দেশের বাজারে এই কোম্পানিটি বেশ সাড়া ফেলেছিল। তবে বেসিক ব্যাংকের ঋণ কেলেঙ্কারিতে মালিকদের নাম আসার পর তারা কারখানা বন্ধ রেখে উধাও হয়ে যান।

কোম্পানিটির ৩০ শতাংশ শেয়ার ছিল উদ্যোক্তা পরিচালকদের হাতে। বাকি শেয়ার ছিল প্রাতিষ্ঠানিক বা সাধারণ বিনিয়োগকারীদের হাতে। কোম্পানি বন্ধ হয়ে যাওয়ায় তারা পুঁজি হারানোর অনিশ্চয়তায় পড়ে।

বিএসইসি চেয়ারম্যান বলেন, ‘এমারেল্ড অয়েল কোম্পানি চালু করার বিষয়ে মিনোরি বাংলাদেশ লিমিটেড নামে একটি জাপানি বিনিয়োগ প্রতিষ্ঠান আগ্রহী। দেখা যাক, কীভাবে কী করা যায়।’

মিনোরি বাংলাদেশ কী বলছে

মিনোরি বাংলাদেশ লিমিটেডের পরিচালক আশরাফ হোসেনের সঙ্গে কথা হয়েছে নিউজবাংলার। তিনি জানান, ২০১৯ সালে তারা কোম্পানিটির উল্লেখযোগ্য সংখ্যক শেয়ার কিনেছিলেন। বোর্ড পুনর্গঠনের পর বিএসইসির সঙ্গে আলোচনায় হয় তাদের। তারা ৫০ কোটি টাকার মতো বিনিয়োগ করতে চান।

বন্ধ কোম্পানিতে বিনিয়োগের আগ্রহের বিষয়ে এক প্রশ্নে তিনি বলেন, ‘নতুন করে একটি কোম্পানি রিফর্ম করা খুবই জটিল। এছাড়া সেটিকে পুঁজিবাজারে নিয়ে আসাও দীর্ঘ সময়ের বিষয়। এজন্য আমরা এই কোম্পানিটিতে বিনিয়োগ আগ্রহী হয়েছি।’

উৎপাদন শুরুর প্রক্রিয়ায় আসতে কত সময় লাগতে পারে, এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, ‘দুটি ব্যাংক ও দুটি নন ব্যাংক আর্থিক প্রতিষ্ঠানে কোম্পানিটির প্রায় ১০০ কোটি টাকার বেশি ঋণ আছে। এখন নতুন যে বোর্ড আছে, তারা যদি ঋণের বিষয়ে আমাদের সহযোগিতা করে বা এটি কীভাবে মওকুফ হবে সেটির বিষয়ে আন্তরিক হয়, তাহলে কোম্পানিটি চালাতে আমাদের সহজ হবে।’

এমারেল্ড অয়েলকে আবার চালু করতে কী পরিমাণ বিনিয়োগ প্রয়োজন হবে প্রশ্নে তিনি বলেন, ‘কোম্পানিটির দুটি ইউনিট আছে। এগুলোর জন্য প্রায় ৪৫ থেকে ৫০ কোটি টাকার বিনিয়োগ প্রয়োজন বলে আমরা হিসাব করেছি।’

বাংলাদেশে এই কোম্পানিটির বিনিয়োগ আছে আগে থেকেই। সাতক্ষীরায় চিংড়ি ও সাদা মাছ নিয়ে তাদের ব্যবসা আছে, যাতে অর্থ লগ্নি হয়েছে প্রায় ৪০ কোটি টাকা।

আশরাফ হোসেন জানান, সাতক্ষীরায় প্রায় দুই হাজার হেক্টরের চিংড়ি ঘের আছে তাদের।

মন্তব্য

আরও পড়ুন

পুঁজিবাজার
Revision of RPO EC receives Ministrys reply

আরপিও সংশোধন: মন্ত্রণালয়ের জবাব পেল ইসি

আরপিও সংশোধন: মন্ত্রণালয়ের জবাব পেল ইসি

গণপ্রতিনিধিত্ব আদেশের (আরপিও) বিধান সংশোধনের অগ্রগতি জানতে চেয়ে নির্বাচন কমিশনের দেয়া চিঠির জবাব দিয়েছে আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের লেজিসলেটিভ ও সংসদ বিষয়ক বিভাগ। বেশ কয়েকবার চিঠি দিয়ে দীর্ঘ তিন মাস পর অবশেষে এই জবাব পেল ইসি।

আইন মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিব আসাদুজ্জামান নূর স্বাক্ষরিত এক চিঠিতে মঙ্গলবার এ জবাব দেয়া হয়। নির্বাচন কমিশনের জনসংযোগ পরিচালক আসাদুজ্জামান আরজু এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

গণপ্রতিনিধিত্ব আদেশের (আরপিও) খসড়া প্রস্তাবের পর গৃহীত ব্যবস্থা সম্পর্কে তথ্য চেয়ে পাঠানো ইসির দুটি চিঠি উপেক্ষা করা হয়। কমিশন সবশেষ চিঠিতে ১৫ ডিসেম্বরের মধ্যে জবাব দিতে সময় বেঁধে দিয়েছিল। অবশেষে সেই চিঠির জবাব মিলেছে।

নির্বাচন কমিশনের কর্মকর্তারা জানান, বিদ্যমান আরপিওতে বেশকিছু সংশোধনী আনার প্রস্তাব করা হয়। ভোট বাতিলে ইসির ক্ষমতা ও ভোট বন্ধে প্রিসাইডিং কর্মকর্তার ক্ষমতা বাড়ানো, প্রার্থীর এজেন্টদের ভয়ভীতি দেখালে বা কেন্দ্রে যেতে বাধা দিলে শাস্তির বিধান, সাংবাদিকদের দায়িত্ব পালনে বাধা দিলে শাস্তি, দলের সর্বস্তরের কমিটিতে নারী প্রতিনিধিত্ব রাখতে ২০৩০ সাল পর্যন্ত সময় দেয়া, দায়িত্বে অবহেলায় কর্মকর্তাদের শাস্তির আওতা বাড়ানো, প্রার্থীদের আয়কর সনদ জমা দেয়া বাধ্যতামূলক করাসহ বেশকিছু বিষয়ে সংস্কার চায় বর্তমান কমিশন৷

মন্ত্রণালয়ের চিঠিতে বলা হয়, ‘আরপিও-এর সংশোধনী প্রস্তাবগুলো নীতিনির্ধারণী বিষয়। সংবিধান ও বিদ্যমান আরপিও-এর বিধানগুলোর সঙ্গে ওইসব প্রস্তাব সামঞ্জস্যপূর্ণ কিনা সে বিষয়সহ সার্বিক পরীক্ষা-নিরীক্ষা কার্যক্রম চলমান।

‘রুলস অফ বিজনেস, ১৯৯৬ এবং অ্যালোকেশন অফ বিজনেস অ্যামং দ্য ডিফারেন্ট মিনিস্ট্রিজ অ্যান্ড অনুযায়ী, প্রস্তাবিত সংশোধনীগুলো বিল আকারে প্রস্তুতপূর্বক নীতিগত/চূড়ান্ত অনুমোদনের জন্য মন্ত্রিসভা বৈঠকে উপস্থাপনসহ জাতীয় সংসদে উত্থাপনের জন্য যাবতীয় কার্যক্রম লেজিসলেটিভ ও সংসদ বিষয়ক বিভাগের ওপর ন্যস্ত।

‘লেজিসলেটিভ ও সংসদ বিষয়ক বিভাগ সরকারের নির্বাহী বিভাগের অংশ হিসেবে নির্বাচন কমিশনকে সর্বদা সহায়তা প্রদানের মাধ্যমে সাংবিধানিক দায়িত্ব পালন করছে। ইতিপূর্বে নির্বাচন কমিশন থেকে আরপিওসহ নির্বাচন সংক্রান্ত অন্য যেসব আইন, বিধি, প্রবিধি, প্রজ্ঞাপন ইত্যাদি নতুনভাবে প্রণয়ন বা সংশোধনের প্রস্তাব পাঠানো হয়েছে সেসব প্রস্তাব সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার দিয়ে সূচারুভাবে সম্পন্ন করা হয়েছে।’

আইন মন্ত্রণালয়ের চিঠিতে আরও বলা হয়, ‘আরপিও-এর প্রস্তাবিত সংশোধনগুলোর ওইরকম পরীক্ষা-নিরীক্ষা কার্যক্রম সম্পন্ন হওয়া মাত্রই বিল আকারে প্রস্তুতপূর্বক নীতিগত/চূড়ান্ত অনুমোদনের জন্য মন্ত্রিসভা বৈঠকে উপস্থাপনে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

আরও পড়ুন:
গাইবান্ধার মতো ভোট রংপুরে চায় না ইসি
ইভিএমে রি-রাইটের সুযোগ নেই: ইসি আলমগীর
বিএনপি নির্বাচনে আসবে: ইসি আনিছুর
নিবন্ধন চেয়ে আবেদন ৮০ নয়, ৯৮ বা তার চেয়ে বেশি
নাকফুল, বাবেস, মুসকিল লীগ, বৈরাবরী পার্টিসহ নিবন্ধন চায় যারা

মন্তব্য

পুঁজিবাজার
Awami League is not a runaway party Sheikh Selim

আওয়ামী লীগ পা‌লি‌য়ে যাওয়া দল না: শেখ সে‌লিম

আওয়ামী লীগ পা‌লি‌য়ে যাওয়া দল না: শেখ সে‌লিম কা‌শিয়ানী উপজেলা আওয়ামী লীগের ত্রি-বা‌র্ষিক সম্মেলনে প্রধান অ‌তি‌থি হিসেবে বক্তব্য দেন শেখ সেলিম। ছবি: নিউজবাংলা
আগামী ১০ ডিসেম্বরের কথা উল্লেখ করে শেখ সেলিম বলেন, ‘১০ তা‌রিখে নাকি ওরা উল্টায়-পাল্টায় দেবে। ঢাকায় ২৫ লাখ লোকের সমাগম ঘটাবে। তারা ২৫০০ লোকের সমাগম করতে পারে না।’

আওয়ামী লী‌গের প্রেসি‌ডিয়াম সদস্য শেখ ফজলুল ক‌রিম সে‌লিম এম‌পি বলেছেন, বিএন‌পি কোনো দল না। ওরা হলো ক্ষণিকের দল। বিএন‌পি হলো ষড়যন্ত্রকারী। ওরা খু‌নির দল। ওরা পাকিস্তানের দালাল। আর আওয়ামী লীগের শ‌ক্তি হলো এ দেশের মানুষ আর বঙ্গবন্ধুর আদর্শ।

মঙ্গলবার দুপুরে গোপালগ‌ঞ্জের কা‌শিয়ানী উপজেলা আওয়ামী লীগের ত্রি-বা‌র্ষিক সম্মেলনে প্রধান অ‌তি‌থির বক্তব্যে এসব কথা বলেন শেখ সেলিম।

তিনি বলেন, ‘জিয়া আর মোস্তাক ছি‌ল পাকিস্তানের এজেন্ট। ৭১-এ পা‌কিস্তান বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করার সাহস পায়‌নি। জিয়া-‌মোস্তাক বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করেছিল। বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করে ওরা আমাদের স্বাধীনতা, মু‌ক্তি‌যুদ্ধ ও গণতন্ত্রকে ‌হত্যা করেছে। জিয়া মরে গিয়ে বেঁচে গেছে। সে বেঁচে থাকলে তারও বিচার হতো। তাকেও ফাঁসির দড়িতে ঝুলতে হতো। মৃত ব্যক্তির বিচার হয় না, তাই তি‌নি মরে গিয়ে বেঁচে গেছেন।’

অন্যান্য দেশের মতো বাংলাদেশেও গণতন্ত্র আছে উল্লেখ করে শেখ সে‌লিম বলেন, ‘বিশ্বের অন্যান্য দেশে যেমন নির্বাচন হয়, বাংলাদেশেও সেই রকম নির্বাচন হবে। কোনো অনির্বাচিত লোকের কাছে ক্ষমতা দেয়া হবে না। আর আওয়ামী লীগ পালিয়ে যাওয়া দল না।’

আগামী ১০ ডিসেম্বরের কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘১০ তা‌রিখে নাকি ওরা উল্টায়-পাল্টায় দেবে। ঢাকায় ২৫ লাখ লোকের সমাগম ঘটাবে। তারা ২৫০০ লোকের সমাগম করতে পারে না।’

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে আওয়ামী লীগের অপর প্রেসি‌ডিয়াম সদস্য মুহাম্মদ ফারুক খান এম‌পি বলেন, ‘আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় থাকলে ২০৪১ সালে বাংলাদেশ বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলাদেশ হবে। আমরা য‌দি সবাই মিলে কাজ ক‌রি ২০৩০ এর মধ্যে বাংলাদেশ বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলাদেশ হবে। কিন্তু যারা বাংলাদেশের স্বাধীনতায় বিশ্বাস করে না তারা ষড়যন্ত্র শুরু করেছে। আমাদের সতর্ক থাকতে হবে।’

তি‌নি আরও বলেন, ‘নির্বাচন আসলে বিএনপি নির্বাচন নি‌য়ে ষড়যন্ত্র করে। তাই ভোটকেন্দ্র পর্যায়ে আমাদের সংগ‌ঠিত থাকতে হবে। যাতে ওরা ভোট নিয়ে কোনো ষড়যন্ত্র করতে না পারে।’

কা‌শিয়ানী উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপ‌তি মো. মোক্তার হোসেনের সভাপতিত্বে সম্মেলনে কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সাংগঠ‌নিক সম্পাদক মির্জা আজম এম‌পি, এসএম কামাল হোসেন, সংর‌ক্ষিত নারী আসনের এম‌পি না‌র্গিস রহমান, গোপালগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি চৌধুরী এমদাদুল হক, সাধারণ সম্পাদক মাহাবুব আলী খানও বক্তব্য রা‌খেন। সঞ্চালণায় ছিলেন, উপ‌জেলা আওয়ামী লী‌গের সাধারণ সম্পাদক কাজী জাহাঙ্গীর আলম।

সম্মেলনের দ্বিতীয় পর্বে মো. মোক্তার হোসেনকে সভাপ‌তি ও কাজী জাহাঙ্গীর আলমকে সাধারণ সম্পাদক করে নতুন ক‌মি‌টি ঘোষণা করেন শেখ ফজলুল ক‌রিম সে‌লিম।

এর আগে সকাল থে‌কে কা‌শিয়ানী উপ‌জেলা প‌রিষদ মাঠের সম্মেলনস্থলে বি‌ভিন্ন ইউনিয়ন ও ওয়ার্ড থে‌কে নেতা-কর্মীরা মি‌ছিল নিয়ে আসেন। সম্মেলন শুরুর আগেই মাঠ কানায়-কানায় ভরে যায়। নেতা-কর্মীরা আশপা‌শের সড়কেও অবস্থান নেন।

আরও পড়ুন:
আ.লীগের সম্মেলনে টোকাই কোত্থেকে আনছেন, স্বপনের প্রশ্ন
‘বিএনপিকে সুযোগ দিতে এগোনো হয়েছে ছাত্রলীগের সম্মেলন’
তত্ত্বাবধায়ক ছাড়াই ভোটে আসবে বিএনপি: কাদের
পিরোজপুরে ৭ বছর পর জেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলন
তাজউদ্দীনকন্যা রিমি আ.লীগ সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য

মন্তব্য

পুঁজিবাজার
On the way to the court the witness was beaten by the accused

আদালতে যাওয়ার পথে আসামিপক্ষের মারধরে সাক্ষী নিহত

আদালতে যাওয়ার পথে আসামিপক্ষের মারধরে সাক্ষী নিহত
ওসি জানান, সকালে মামলার বাদী সাত্তার ও তার ভাই আব্দুল খালেক আদালতে যেতে বাড়ি থেকে বের হন। আসামিদের বাড়ির পাশ দিয়ে যাওয়ার সময় তাদের ওপর হামলা চালানো হয়। 

বগুড়ার ধুনটে মামলার সাক্ষী দিতে আদালতে যাওয়ার পথে সাক্ষীকে পিটিয়ে হত্যা করার অভিযোগ উঠেছে আসামিপক্ষের লোকজনের বিরুদ্ধে। এ ঘটনায় পাঁচজনকে আটক করেছে পুলিশ।

উপজেলার কালেরপাড়া ইউনিয়নের কোদলাপাড়া গ্রামে মঙ্গলবার সকালে এ ঘটনা ঘটে। ঘটনাস্থল থেকে আহত আব্দুল খালেককে শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

নিহত ৬৫ বছরের খালেকের বাড়ি কোদলাপাড়া গ্রামে।

এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন ধুনট থানার ওসি রবিউল ইসলাম।

স্বজনদের বরাতে তিনি জানান, ৩ নভেম্বর কোদলাপাড়া কেন্দ্রীয় জামে মসজিদের চাল কেনার টাকা নিয়ে মারামারির ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় আব্দুস সাত্তার মসজিদের কোষাধ্যক্ষ মোজাম্মেল হক ও তার ছেলে ফজলুল হকসহ ৭ জনকে আসামি করে বগুড়া আদালতে মামলা করেন। সেই মামলার সাক্ষী ছিলেন সাত্তারের ভাই আব্দুল খালেক। বগুড়া আদালতে মঙ্গলবার মামলার হাজিরা ছিল।

ওসি জানান, সকালে মামলার বাদী সাত্তার ও তার ভাই আব্দুল খালেক আদালতে যেতে বাড়ি থেকে বের হন। আসামিদের বাড়ির পাশ দিয়ে যাওয়ার সময় তাদের ওপর হামলা চালানো হয়।

নিহতের দেহ ময়নাতদন্ত শেষে দাফন করার পর পরিবার হত্যা মামলা করবে বলেও জানিয়েছেন ওসি।

আরও পড়ুন:
চা দোকানিকে কুপিয়ে হত্যা
মসজিদে যাওয়ার পথে ব্যবসায়ী খুন
সাভারের নীলা হত্যা মামলার পরবর্তী সাক্ষ্য ২০ ফেব্রুয়ারি
দুই যুগ আগের হত্যা মামলায় ২ আসামির যাবজ্জীবন
কোথায় গেল আয়াতের টুকরা দেহ

মন্তব্য

পুঁজিবাজার
UN must be effective and strong Paltu

জাতিসংঘকে কার্যকর ও শক্তিশালী হতে হবে: পল্টু

জাতিসংঘকে কার্যকর ও শক্তিশালী হতে হবে: পল্টু জাতীয় প্রেস ক্লাবে মঙ্গলবার আলোচনা সভায় বক্তব্য দেন আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য মোজাফফর হোসেন পল্টু। ছবি: নিউজবাংলা
আওয়ামী লীগ উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য মোজাফফর হোসেন পল্টু বলেন, ‘মাত্র ৯ মাস মুক্তিযুদ্ধকালে পাকিস্তানিদের নির্যাতনে আমরা অতিষ্ঠ হয়ে গিয়েছিলাম। আর ফিলিস্তিনের মানুষ বছরের পর বছর এই মুক্তির আন্দোলন করে আসছে। জীবন দিয়ে যাচ্ছে। তারা অস্তিত্বের জন্য সংগ্রাম করছে।’

আওয়ামী লীগ উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য মোজাফফর হোসেন পল্টু বলেছেন, ‘মানুষের ন্যায্য অধিকার, শিক্ষা, স্বাস্থ্যসহ সবকিছু প্রতিষ্ঠা করার জন্যই জাতিসংঘের সৃষ্টি হয়েছে। সেখানে আন্তর্জাতিক বড় বড় শক্তির কাছে জাতিসংঘ যেন অসহায়। বিশ্ব সংস্থাটিকে এই অসহায়ত্ব দূর করে শক্তিশালী ও কার্যকরী প্রতিষ্ঠান হিসেবে দাঁড়াতে হবে।’

মঙ্গলবার জাতীয় প্রেস ক্লাবে ‘ফিলিস্তিনের জনগণের সাথে আন্তর্জাতিক সংহতি দিবস’ উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

বাংলাদেশ শান্তি পরিষদ আয়োজিত এই সভায় আয়োজক সংগঠনের সভাপতি পল্টু বলেন, ‘আমরা মাত্র ৯ মাস মুক্তিযুদ্ধ করেছি। সেখানে পাকিস্তানিদের নির্যাতনে আমরা অতিষ্ঠ হয়ে গিয়েছিলাম। আর ফিলিস্তিনের মানুষ বছরের পর বছর এই মুক্তির আন্দোলন করে আসছে। জীবন দিয়ে যাচ্ছে। তারা অস্তিত্বের জন্য সংগ্রাম করছে।’

তিনি বলেন, ‘ছোটবেলা থেকেই শুনে আসছি ফিলিস্তিনিদের দুঃখ-দুর্দশার খবর। তারা কোনো আধিপত্যের জন্য সংগ্রাম করেনি। আজকে নিজ ভূমিতে তারা প্রতিমুহূর্তে মৃত্যুর প্রহর গুনছে। ফিলিস্তিনের এমন অবস্থা সৃষ্টির সঙ্গে আমেরিকা জড়িত। আমেরিকাপন্থি ইসরায়েল তাদের ‌ওপর হামলা চালিয়ে যাচ্ছে।’

‘ফিলিস্তিনের শিশুরা জন্ম থেকেই দেখছে তাদের সামনে মা-বাবাকে হত্যা করা হচ্ছে। তাদের ওপর পাশবিক নির্যাতন করা হচ্ছে। এই নির্মমতা সবাইকে উপলব্ধি করতে হবে। তাই আন্তর্জাতিক মহল ফিলিস্তিনের জনগণের সঙ্গে সংহতি প্রকাশ করে এই দিনকে ফিলিস্তিন দিবস হিসেবে ঘোষণা করেছে।

মন্তব্য

পুঁজিবাজার
In the conference of A League Tokai is bringing Swapans question from where

আ.লীগের সম্মেলনে টোকাই কোত্থেকে আনছেন, স্বপনের প্রশ্ন

আ.লীগের সম্মেলনে টোকাই কোত্থেকে আনছেন, স্বপনের প্রশ্ন নোয়াখালী সদর উপজেলা ও পৌর আওয়ামী লীগের সম্মেলনে জাতীয় সংসদের হুইপ আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন। ছবি: নিউজবাংলা
নেতা-কর্মীদের শোক প্রস্তাবের পর স্বপন মাইক হাতে নিয়ে বলেন, 'এখানে টোকাইগুলো কোত্থেকে আনছেন। যখন শোক প্রস্তাব হয় তখন যারা স্লোগান দেয়, তালি দেয়, এরা কি রাজনৈতিক কর্মী?'

নোয়াখালী সদর উপজেলা ও পৌর আওয়ামী লীগের সম্মেলনে বিশৃঙ্খল অবস্থা দেখে চরম ক্ষুব্ধ হয়েছেন দলটির চট্টগ্রাম বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক ও হুইপ আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন।

মঙ্গলবার সম্মেলনে প্রয়াত নেতা-কর্মীদের উদ্দেশে শোক প্রস্তাবের পর স্বপন মাইক হাতে নিয়ে বলেন, 'এখানে টোকাইগুলো কোত্থেকে আনছেন। যখন শোক প্রস্তাব হয় তখন যারা স্লোগান দেয়, তালি দেয়, এরা কি রাজনৈতিক কর্মী?'

এ সময় সমাবেশে উপস্থিতি নিয়ে মঞ্চের নেতাদের উদ্দেশে স্বপন বলেন, 'বাংলাদেশের কোনো ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সম্মেলনও এতটুকু প্যান্ডেলে হয় না। বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের নিজের জেলায় একখান প্যান্ডেল বানাইছে, কুড়িগ্রামের সবচেয়ে গরিব এলাকা উজিরপুরের আওয়ামী লীগের সম্মেলনের প্যান্ডেলও এর চেয়ে বড় হয়। এটাকে কি পথসভা বলে নাকি সম্মেলন বলে? লজ্জা শরম থাকা উচিত।

‘আমি খুব আশা করে নোয়াখালী এসেছিলাম। দুটি উপজেলার সম্মেলন। আমি এসে সামনে দেখব দাড়ি পাকা চুল পাকা অন্তত দুই হাজার আওয়ামী লীগের প্রবীণ নেতা-কর্মী বসে থাকবেন। কিন্তু আমি যাদের দেখতেছি, আওয়ামী লীগের প্রাথমিক সদস্য পদও তাদের নাই। এখনও যুবলীগ করারই বয়স হয়নি। ছাত্রলীগের কর্মী তাদের বুকের মধ্যে ব্যাজ লাগায়ে নিয়ে এসে আমাকে দেখাচ্ছেন আপনাদের লোক আছে। লোক কয়জন আছে আমি হাতে গুনে বলে দেব।'

তিনি আরও বলেন, 'লজ্জা করতেছে না যারা প্রার্থী হয়েছেন? আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক যখন বক্তব্য দেন তখন সারা বাংলাদেশের মানুষ পিনপতন নীরবতায় শুনে আর আপনারা নোয়াখালীর মানুষ তখন স্লোগান দেন। কর্মীদের থামাতে পারেন না? আমাদের বুঝান? যদি ভদ্রলোকের মতো সম্মেলন করেন তাহলে বলেন বসি আর না হলে চলে যাই।'

এ সময় মঞ্চে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কৃৃষি ও সমবায়বিষয়ক সম্পাদক ফরিদুন্নাহার লাইলী, নোয়াখালী জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক একরামুল করিম চৌধুরী, জেলা আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক অধ্যক্ষ এ এইচ এম খায়রুল আনম সেলিম, যুগ্ম আহ্বায়ক শিহাব উদ্দিন শাহীন ও শহীদুল্লাহ খান সোহেল, পৌরসভা আওয়ামী লীগের সভাপতি আবদুল ওয়াদুদ পিন্টু এবং উপজেলা চেয়ারম্যান এ কে এম সামছুদ্দিন জেহান।

আরও পড়ুন:
ভর্তা-ভাজি নয়, গরিব এখন খাবে লবণ-ভাত: রিজভী
যুক্তরাষ্ট্রে তেলের দাম ৭৮ শতাংশ কমার তথ্য দিলেন ফখরুল
টিপু হত্যায় আটক আরও ২
সাম্প্রদায়িক হামলা: ক্ষতিগ্রস্তদের প্রধানমন্ত্রীর অনুদানের চেক
নোয়াখালীতে সাম্প্রদায়িক সহিংসতা: অগ্রগতি নেই ৩২ মামলার ২৯টির

মন্তব্য

পুঁজিবাজার
Arms recovered from camp room in Osmani Medical hostel

ওসমানী মেডিক্যালের ছাত্রাবাসে ‌‌শিবিরের কক্ষ থেকে অস্ত্র উদ্ধার

ওসমানী মেডিক্যালের ছাত্রাবাসে ‌‌শিবিরের কক্ষ থেকে অস্ত্র উদ্ধার ওসমানী মেডিক্যাল কলেজের হোস্টেলে একটি কক্ষ থেকে অস্ত্র ও শিবিবের প্রচার সামগ্রী জব্দ করেছে পুলিশ। ছবি: নিউজবাংলা
পুলিশ জানায়, ওসমানী মেডিক্যাল কলেজ ছাত্রাবাসের শিবিরের নিয়ন্ত্রণাধীন কক্ষ থেকে হকিস্টিক, কুড়ালসহ শিবিবের বিভিন্ন ধরনের প্রচার সামগ্রী জব্দ করা হয়েছে।

সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিক্যাল কলেজের আবু সিনা ছাত্রাবাসের একটি বন্ধ কক্ষ থেকে অস্ত্র উদ্ধার করেছে পুলিশ। কক্ষটি ছাত্রশিবিরের নিয়ন্ত্রণাধীন বলে জানিয়েছে পুলিশ।

মঙ্গলবার বিকেলে সিলেট কোতোয়ালি মডেল থানার পুলিশ হোস্টেলের একটি কক্ষে অভিযান চালিয়ে কুড়াল, হকিস্টিক, ক্রিকেট স্টাম্পসহ অস্ত্র উদ্ধার করে। এ সময় শিবিবের বিভিন্ন বই এবং প্রচার সামগ্রীও জব্দ করা হয়।

এমএজি ওসমানী মেডিক্যাল কলেজে পুলিশ বক্সের উপপরিদর্শক (এসআই) জুয়েল চৌধুরী জানান, মঙ্গলবার ওসমানী মেডিক্যাল কলেজ আবু সিনা ছাত্রাবাসের দীর্ঘদিন বন্ধ থাকা শিবিরের নিয়ন্ত্রণাধীন একটি কক্ষে দেশীয় অস্ত্র ও প্রচার সামগ্রী দেখতে পান ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীরা। তারা কলেজ প্রশাসন ও পুলিশকে জানালে কক্ষটি খুলে হকিস্টিক, কুড়ালসহ শিবিবের বিভিন্ন ধরনের প্রচার সামগ্রী জব্দ করা হয়।

এসআই জুয়েল বলেন, অস্ত্র উদ্ধার করা হলেও ওই কক্ষে কাউকে পাওয়া যায়নি। এ ব্যাপারে আইনি ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে।

ওসমানী মেডিক্যাল কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি ডা. নাজমুল ইসলাম বলেন, ‘কক্ষটি শিবিরের নিয়ন্ত্রণাধীন। এটি বেশির ভাগ সময় বন্ধ থাকলেও শিবিরের নেতা-কর্মীরা প্রায়ই গোপনে এখানে জড়ো হন। আজ জানালা দিয়ে ছাত্রলীগের কর্মীরা কক্ষে অস্ত্রের মজুত দেখে পুলিশকে জানান।’

এ বিষয়ে ওসমানী মেডিক্যাল কলেজের উপাধ্যক্ষ অধ্যাপক ডা. শিশির চক্রবর্তী বলেন, ‘ছাত্রাবাসের একটি কক্ষ থেকে পুলিশ কিছু দেশীর অস্ত্র ও শিবিরের বই উদ্ধার করেছে বলে শুনেছি। এই কক্ষ অনেকদিন ধরে প্রায় পরিত্যক্ত অবস্থায় ছিল। কোন ছাত্র থাকত না। এখানে কীভাবে অস্ত্র এলো খোঁজ নিয়ে দেখা হচ্ছে।’

আরও পড়ুন:
জেলায় জেলায় শিবিরের শোডাউন
চট্টগ্রামে শিবিরের মিছিল
আ.লীগ নিয়ে ব্যঙ্গ করায় শিবির নেতার ১০ বছর জেল
রাজশাহীতে ১৫ ‘শিবির’ কর্মী আটক
বিজয় দিবসে শিবিরের মিছিল

মন্তব্য

পুঁজিবাজার
BNP will not exist if lying is banned Who

মিথ্যাচার নিষিদ্ধ হলে বিএনপির অস্তিত্ব থাকবে না: কাদের

মিথ্যাচার নিষিদ্ধ হলে বিএনপির অস্তিত্ব থাকবে না: কাদের
১০ ডিসেম্বর রাজধানীতে বিএনপির সম্ভাব্য সমাবেশের বিষয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘আক্রমণ না করলে কোনো পাল্টা আক্রমণ করা হবে না। কিন্তু যদি আক্রমণের মতলব থাকে, তবে খবর আছে।’

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক, সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বিএনপির সমালোচনা করে বলেছেন, ‘যদি আইন করে মিথ্যাচার নিষিদ্ধ করা হয়, তাহলে বিএনপির কোনো অস্তিত্ব থাকবে না।’

আরও বলেন, ‘এরা ভোট চুরি করেছে, ভুয়া ভোটার তৈরি করেছে। অর্থ পাচার করে মুচলেকা দিয়ে তাদের নেতা লন্ডনে চলে গেছে। সেখানে বসে বসে মাঝেমাঝে হুংকার দেয়। আওয়ামী লীগ এসব হুংকারে ভয় পায় না। আর বাংলাদেশের মানুষও এমন নেতাকে মানে না।’

মঙ্গলবার বিকেলে নেত্রকোণা জেলা আওয়ামী লীগের ত্রিবার্ষিক সম্মেলনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন কাদের।

তিনি বলেন, ‘খেলা হবে। আন্দোলনে খেলা হবে। নির্বাচনে খেলা হবে। মোকাবিলায় খেলা হবে। হাওয়া ভবনের বিরুদ্ধে খেলা হবে। সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ ও সাম্প্রদায়িকতার বিরুদ্ধে খেলা হবে।

‘যারা সন্ত্রাস করে আওয়ামী লীগের ২১ হাজার নেতা-কর্মীকে হত্যা করেছে, হাজারো মায়ের কোল খালি করেছে, অগণিত স্ত্রীদের স্বামীহারা করেছে, বোনদের ভাইহারা করেছে, তাদের কোনো ক্ষমা নেই।’

আগামী ১০ ডিসেম্বর রাজধানীতে বিএনপির সম্ভাব্য সমাবেশের বিষয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘আক্রমণ না করলে কোনো পাল্টা আক্রমণ করা হবে না। কিন্তু যদি আক্রমণের মতলব থাকে, তবে খবর আছে।’

এ সময় দেশের জনসাধারণকে আতঙ্কিত না হবার পরামর্শ দিয়ে তিনি বলেন, ‘আমরা জনগণের পাশে আছি। জনগণকে নিয়েই আমরা এদের প্রতিহত করব।’

শেখ হাসিনার সরকারের সাফল্য তুলে ধরে তিনি বলেন, ‘বর্তমান সময়ে বিশ্বের বহু দেশে দুর্ভিক্ষের পদধ্বনি শোনা যাচ্ছে। কিন্তু সে তুলনায় আমরা বাংলাদেশের জনগণ অনেক ভালো আছি। শেখ হাসিনা ভালো থাকলে বাংলাদেশ ভালো থাকে।’

সম্মেলনের দ্বিতীয় অধিবেশনে নেত্রকোণা জেলা আওয়ামী লীগের আংশিক নতুন কমিটি ঘোষণা করেন ওবায়দুল কাদের। কমিটিতে অ্যাডভোকেট আমীরুল ইসলামকে সভাপতি এবং অ্যাডভোকেট শামছুর রহমান লিটনকে (ভিপি লিটন) সাধারণ সম্পাদক করা হয়।

মিথ্যাচার নিষিদ্ধ হলে বিএনপির অস্তিত্ব থাকবে না: কাদের
নেত্রকোণা জেলা আওয়ামী লীগের নতুন সভাপতি অ্যাডভোকেট আমীরুল ইসলাম (বাঁয়ে) ও সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট শামছুর রহমান লিটনকে (ভিপি লিটন)

নেত্রকোণা জেলা আওয়ামী লীগের বিদায়ী সভাপতি মতিয়র রহমান খানের সভাপতিত্বে এবং সাধারণ সম্পাদক সমাজকল্যাণ প্রতিমন্ত্রী বীর মুক্তিযোদ্ধা আশরাফ আলী খান খসরুর পরিচালনায় সম্মেলনের প্রথম অধিবেশনে আরও বক্তব্য দেন আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ও কৃষিমন্ত্রী ড. আব্দুর রাজ্জাক এমপি, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি এমপি, সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেন, শফিউল আলম চৌধুরী নাদেল, সাংস্কৃতিক সম্পাদক অসীম কুমার উকিল এমপি, দপ্তর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া, কেন্দ্রীয় সদস্য মারুফা আক্তার পপি, উপাধ্যক্ষ রেমন্ড আরেং, ওয়ারেসাত হোসেন বেলাল বীর প্রতীক এমপি, হাবিবা রহমান খান শেফালী এমপিসহ অনেকেই।

সম্মেলনে কৃষিমন্ত্রী ড. আব্দুর রাজ্জাক বলেন, ‘বিএনপি যতই বলুক না কেন, পৃথিবীর কোনো শক্তিই আওয়ামী লীগকে রাজনৈতিকভাবে পরাজিত ও ক্ষমতাচ্যুত করতে পারবে না। বিএনপির শাসনামলে গণতন্ত্র ছিল বিপন্ন। অর্থনীতি ছিল ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে। তারা আওয়ামী লীগের অসংখ্য নেতা-কর্মী ও বহু হিন্দু পরিবারের ধনসম্পদ লুণ্ঠন করেছে, বাড়িতে আগুন দিয়েছে, অত্যাচার করেছে।’

শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি এমপি বলেন, ‘তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থাকে বিএনপি ধ্বংস করে দিয়ে গেছে। সে পদ্ধতিতে আর নির্বাচনের সুযোগ নেই। সারা বিশ্বে যে পদ্ধতিতে নির্বাচন হয়, সে পদ্ধতিতেই দেশের সংবিধান অনুসারে বাংলাদেশের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। '৭১, '৭৫ এবং ২১ আগস্টের খুনিদের আর বাংলার মাটিতে ঠাঁই হবে না।

আরও পড়ুন:
বিএনপির এবার টানেলের জ্বালা: কাদের
কাদেরের কাছে ক্ষমা চাইলেন একরাম
বিএনপির পতন অনিবার্য: কাদের
ডিসেম্বরকে কেন্দ্র করে অপশক্তি মাঠে নেমেছে: ওবায়দুল কাদের
খেলার নিয়ম ভঙ্গ করলে বিএনপির খবর আছে: কাদের

মন্তব্য

p
উপরে