× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

খেলা
How much money will a team get before returning home from the World Cup in Qatar?
hear-news
player
google_news print-icon

কাতার বিশ্বকাপের প্রাইজমানি ৩০০০ কোটি টাকা

কাতার-বিশ্বকাপের-প্রাইজমানি-৩০০০-কোটি-টাকা
ছবি: সংগৃহীত
বিশ্বকাপে অংশ নেয়া মানেই কাঁড়ি কাঁড়ি টাকা নিয়ে দলগুলোর দেশে ফেরা। ৩২ দলের জন্য প্রাইজমানি না থাকলেও শেষ ১৬ নিশ্চিত করা দলগুলো এবারে বিপুল অঙ্কের টাকা পাবে প্রাইজমানি হিসেবে, যা প্রায় ৩ হাজার কোটি টাকার সমান।

বিশ্বকাপ মানেই অর্থের ছড়াছড়ি। দরজায় কড়া নাড়ছে ফিফা বিশ্বকাপ। কাতারে বসতে যাওয়া বিশ্ব ফুটবলের এই আসরকে ঘিরে ইতোমধ্যেই শুরু হয়ে গেছে উন্মাদনা। দলগুলো নিচ্ছে শেষ সময়ের প্রস্তুতি। ২০ নভেম্বর স্বাগতিক কাতার ও ইকুয়েডরের ম্যাচের মধ্য দিয়ে পর্দা উঠবে অন্যতম খরুচে এই বিশ্বকাপ আসরের।

ধনকুবের দেশ কাতার এবারে বিশ্বকাপের আয়োজক হওয়ায় আগ্রহের কমতি নেই বিশ্বকাপের আয়োজন নিয়ে। চোখ ধাঁধানো স্টেডিয়াম থেকে শুরু করে নজরকাড়া আয়োজন, সবই থাকছে বিশ্বকাপের এবারের আসরে।

বিশ্বকাপে অংশ নেয়া মানেই কাঁড়ি কাঁড়ি টাকা নিয়ে দলগুলোর দেশে ফেরা। ৩২ দলের জন্য প্রাইজমানি না থাকলেও শেষ ১৬ নিশ্চিত করা দলগুলো বিপুল অঙ্কের টাকা পাবে এবার প্রাইজমানি হিসেবে, যা প্রায় ৩ হাজার কোটি টাকার সমান।

চলুন দেখে আসি এবারের আসরের শেষ ১৬ থেকে শুরু করে শিরোপাজয়ী দল কে কত টাকা পাবে।

গ্রুপপর্ব শেষ করে নকআউট পর্বের প্রথম ধাপ শেষ ষোলো। এখানে জিতলে শেষ আট, হারলেই ধরতে হবে বাড়ির পথ। তবে ফেরার আগে শেষ ১৬ নিশ্চিত করা ৮ দলের প্রত্যেকে পাবে ১১.৭ মিলিয়ন ইউরো বা ১২৪ কোটি ৪৬ লাখ ৪০ হাজার টাকা করে।

এরপর কোয়ার্টার ফাইনাল পর্ব থেকে বিদায় নেয়া চার দলের প্রত্যেকে বাড়ি ফিরবে ১৫.৪০ মিলিয়ন ইউরো বা ১৬৩ কোটি ৮২ লাখ ৫২ হাজার টাকা প্রায়।

এদিকে তৃতীয় ও চতুর্থ হওয়া দল যথাক্রমে দেশে ফিরবে প্রায় ২৬০ কোটি টাকা ও ২৪০ কোটি টাকা নিয়ে।

আর মূল আকর্ষণ শিরোপাজয়ী দল বিশ্বকাপ ঘরে তোলার পাশাপাশি ৩৮ মিলিয়ন ইউরো নিয়ে বাড়ি ফিরবে, যা কি না বাংলাদেশি টাকায় ৪০৪ কোটি ২৪ লাখেরও বেশি। আর রানার্স আপ দল পাবে ২৭.২৭ মিলিয়ন ইউরো বা প্রায় ২৯০ কোটি টাকা।

আরও পড়ুন:
কাতারকে বিশ্বকাপের দায়িত্ব দেয়া ভুল ছিল: ব্ল্যাটার
ব্রাজিলের বিশ্বকাপ দলে অভিজ্ঞ আলভেস
‘ব্রাজিল শুধু নেইমারের ওপর ভরসা করে না’
মেসির বিশ্বকাপের বুটের ছবি ফাঁস
শরণার্থী ক্যাম্প থেকে বিশ্বকাপের মঞ্চে আওয়ের মাবিল

মন্তব্য

আরও পড়ুন

খেলা
Hazard retires after Belgium disappointment

বেলজিয়ামের হতাশার পর অবসরে অ্যাজার্ড

বেলজিয়ামের হতাশার পর অবসরে অ্যাজার্ড বেলজিয়ামের জার্সিতে ইডেন অ্যাজার্ড। ছবি: এএফপি
বিশ্বকাপের পর ইউরো বাছাইপর্ব ও নেশনস লিগে না খেলার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তিনি। বুধবার বিকেলে নিজের ইনস্টাগ্রাম অ্যাকাউন্টে এক পোস্টে এই ঘোষণা দেন ৩১ বছরের এই তারকা।

বিশ্বকাপের গ্রুপ পর্ব থেকে হতাশাজনক বিদায় নিয়েছে বেলজিয়াম। অনেকের চোখে টুর্নামেন্টের ফেভারিট দলটি মাত্র ১ ম্যাচ জয় পেয়েছে।

বেলজিয়ামের সোনালী প্রজন্মের কেভিন ডি ব্রুইনা, ইডেন অ্যাজার্ড, থিবো কোতোয়া ও ড্রিস মের্টেনসরা আরও একটি বড় টুর্নামেন্ট শেষ করেছেন সাফল্য ছাড়া।

এ হতাশা থেকেই কি না, বিশ্বকাপ থেকে বিদায়ের পাঁচ দিন পর আন্তর্জাতিক ফুটবল থেকে অবসরের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন দলের ফরোয়ার্ড ইডেন অ্যাজার্ড।

বিশ্বকাপের পর ইউরো বাছাইপর্ব ও নেশনস লিগে না খেলার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তিনি। বুধবার বিকেলে নিজের ইনস্টাগ্রাম অ্যাকাউন্টে এক পোস্টে এই ঘোষণা দেন ৩১ বছরের এই তারকা।

বেলজিয়ামের হয়ে খেলার জন্য নতুনরা তৈরি উল্লেখ করে তিনি লেখেন, ‘সবাইকে তাদের সমর্থনের জন্য ধন্যবাদ। ২০০৮ সাল থেকে যে আনন্দগুলো আপনাদের সঙ্গে শেয়ার করছি তার জন্য কৃতজ্ঞতা। আজ আমি আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ার শেষ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। পরের প্রজন্ম তৈরি। সবাইকে খুব মিস করব।’

এতে করে শেষ হলো তার ১৪ বছরের বর্ণাঢ্য আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ার। ২০০৮ সালে লুক্সেমবার্গের বিপক্ষে ১৭ বছর বয়সে বেলজিয়ামের জার্সি গায়ে অভিষেক হয় অ্যাজার্ডের।

১৪ বছরে ১২৬টি ম্যাচে অ্যাজার্ডের কাছ থেকে বেলজিয়াম পেয়েছে ৩৩টি গোল ও ৩৬টি অ্যাসিস্ট। জাতীয় দলের হয়ে ৩টি বিশ্বকাপ ও দুটি ইউরো খেলেছেন তিনি।

আরও পড়ুন:
রামোসের হ্যাটট্রিকে সুইজারল্যান্ডকে উড়িয়ে শেষ আটে পর্তুগাল
কাতার বিশ্বকাপের প্রথম হ্যাটট্রিক রামোসের

মন্তব্য

খেলা
Ronaldo did not participate in the teams celebration

দলের উদযাপনে অংশ নেননি রোনালডো

দলের উদযাপনে অংশ নেননি রোনালডো ম্যাচ শেষে ড্রেসিং রুমে ফিরছেন রোনালডো। ছবি: এএফপি
ম্যাচ শেষে দল যখন উদযাপনে ব্যস্ত তখন রোনালডোকে দেখা গেছে দলছুট হয়ে একাকী মাঠ ছাড়তে। দলের সঙ্গে উদযাপন না করেই ম্যাচ শেষে মাঠ ছাড়েন তিনি।

সুইজারল্যান্ডের বিপক্ষে কাতার বিশ্বকাপের রাউন্ড অফ সিক্সটিনের অতি গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে দলের অধিনায়ক ও সবচেয়ে অভিজ্ঞ খেলোয়াড় ক্রিস্টিয়ানো রোনালডোকে ছাড়াই একাদশ সাজিয়েছিলেন পর্তুগালের কোচ ফার্নান্দো সান্তোস। ধীরগতি ও একমাত্রিক খেলার পাশাপাশি কোচের সঙ্গে বিবাদে জায়গা হারিয়ে ম্যাচের ৭৩ মিনিট পর্যন্ত ডাগআউটে কাটিয়ে দেয়া লাগে রোনালডোকে।

যদিও তারকা এই ফুটবলারের অভাবটা কাউকে বুঝতেই দেননি জোয়াও ফেলিশ-বার্নার্ডো সিলভা-গনসালো রামোসরা। ম্যাচের প্রথমার্ধেই নিয়ন্ত্রণ বুঝে নিয়ে বড় জয়টা তারা নিশ্চিত করে ফেলেন ৬৭ মিনিটের ভেতরেই।

রোনালডো যখন মাঠে নামেন ততক্ষণে সুইজারল্যান্ডের জালে ৫টি গোল ঠুকে দিয়েছিলেন পর্তুগিজরা। বিনিময়ে হজম করতে হয়েছিল কেবল এক গোল।

দলের উদযাপনে অংশ নেননি রোনালডো


শেষ পর্যন্ত হেসেখেলেই সুইজারল্যান্ডকে ৬-১ ব্যবধানে হারানোর মধ্য দিয়ে কোয়ার্টার ফাইনাল নিশ্চিত হয় পর্তুগিজদের।

বড় ব্যবধানে অতি গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে জয়। আর সে কারণেই চিরাচরিত রীতি অনুযায়ী ম্যাচের পর মাঠে উল্লাস করে ভক্তদের সমর্থনের জন্য ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন ফুটবলাররা।

আর স্বভাবতই কেন্দ্রবিন্দুতে থাকে জয়ের নায়ক, তারকা ফুটবলার ও অধিনায়ক।

ভিন্ন এক দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন পর্তুগিজ দলপতি রোনালডো। ম্যাচ শেষে দল যখন উদযাপনে ব্যস্ত তখন তাকে দেখা গেল দলছুট হয়ে একাকী মাঠ ছাড়তে। দলের সঙ্গে উদযাপন না করেই ম্যাচ শেষে মাঠ ছাড়েন তিনি।

দলের উদযাপনে অংশ নেননি রোনালডো

ম্যাচ শেষে ইতালিয়ান উপস্থাপক আদ্রিয়ানো ডেল মন্টি মাঠের একটি ভিডিও পোস্ট করেন যেখানে স্পষ্ট দেখা যায় এ দৃশ্য।

কেন তিনি ছিলেন না দলীয় উদযাপনে সেটি জানা যায়নি এখনও রোনালডো কিংবা দলীয় কোনো সূত্র থেকে। ধারণা করা হচ্ছে দলের ভেতর চলমান অস্থিতিশীল পরিস্থিতির কারণেই নিজ থেকেই ধীরে ধীরে পর্তুগাল জাতীয় দল থেকে নিজেকে সরিয়ে নিচ্ছেন তিনি।

আরও পড়ুন:
মেসিকে আটকানোর ফর্মুলা জানেন নেদারল্যান্ডসের কোচ
হাজার পেনাল্টি অনুশীলনেও ব্যর্থ স্পেন
কোয়ার্টার ফাইনালে কে কার প্রতিপক্ষ

মন্তব্য

খেলা
Von Haal knows the formula to stop Messi

মেসিকে আটকানোর ফর্মুলা জানেন নেদারল্যান্ডসের কোচ

মেসিকে আটকানোর ফর্মুলা জানেন নেদারল্যান্ডসের কোচ আর্জেন্টিনা জাতীয় দলের অনুশীলনে মেসি। ছবি: এএফপি
ডাচদের বাঁচা-মরার লড়াইয়ে আর্জেন্টিনার অধিনায়ককে নিয়ে আলাদা পরিকল্পনার কথা সংবাদমাধ্যমকে জানিয়েছেন নেদারল্যান্ডসের হেড কোচ লুই ফন হাল। তার দাবি মেসিকে আটকানোর উপায় জানেন তিনি। 

নিজের শেষ বিশ্বকাপে দুর্দান্ত ফর্মে রয়েছেন আর্জেন্টাইন তারকা ফুটবলার লিওনেল মেসি। প্রতি ম্যাচেই নিজে গোল করার পাশাপাশি অবদান রাখছেন গোল করানোতেও। কাতার বিশ্বকাপের শুরু থেকে প্রতিপক্ষের জন্য আতঙ্কের অন্য নাম হয়ে দাঁড়িয়েছেন আর্জেন্টাইন এই ক্ষুদে জাদুকর।

মেসিকে নিয়ে প্রতি ম্যাচের আগেই বিশেষ পরিকল্পনা এঁটে মাঠে নামে প্রতিপক্ষও। কোয়ার্টার ফাইনালে আর্জেন্টিনার প্রতিপক্ষ নেদারল্যান্ডসও এর ব্যতিক্রম নয়। ডাচদের বাঁচা-মরার লড়াইয়ে আর্জেন্টিনার অধিনায়ককে নিয়ে আলাদা পরিকল্পনার কথা সংবাদমাধ্যমকে জানিয়েছেন নেদারল্যান্ডসের হেড কোচ লুই ফন হাল। তার দাবি মেসিকে আটকানোর উপায় জানেন তিনি।

হাল বলেন, ‘এটাতে কোনো সন্দেহ নেই যে মেসি ভয়ংকর সৃষ্টিশীল খেলোয়াড়। সে অনেক সুযোগ তৈরি করে দিতে পারে, নিজেও সুযোগ বানিয়ে নিয়ে গোল করতে পারে। কিন্তু যখন তিনি বল হারিয়ে ফেলেন, তখন তার অংশগ্রহণ কমে যায়। আর এটাই আমাদের জন্য বড় সুযোগ।’

শেষবার দুই দলের দেখাতেও ফন হাল নেদারল্যান্ডসের কোচ ছিলেন। ২০১৪ সালের বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে ডাচদের মুখোমুখি হয় আর্জেন্টিনা। সেবার মেসিকে আটকে রাখলেও পেনাল্টি শুটআউটে হেরে ফাইনাল খেলা হয়নি নেদারল্যান্ডসের।

এবারে তেমনটা আর হতে দিতে চান না ফন হাল। শুক্রবার রাত ১টায় শেষ চার নিশ্চিতের লড়াইয়ে মুখোমুখি হচ্ছে আর্জেন্টিনা ও নেদারল্যান্ডস।

আরও পড়ুন:
হাজার পেনাল্টি অনুশীলনেও ব্যর্থ স্পেন
কোয়ার্টার ফাইনালে কে কার প্রতিপক্ষ
কাতার বিশ্বকাপের প্রথম হ্যাটট্রিক রামোসের
স্পেনকে বিদায় করে ইতিহাস গড়ল মরক্কো

মন্তব্য

খেলা
Spain failed in the practice of a thousand penalty shootouts

হাজার পেনাল্টি অনুশীলনেও ব্যর্থ স্পেন

হাজার পেনাল্টি অনুশীলনেও ব্যর্থ স্পেন রাউন্ড অফ সিক্সটিনের ম্যাচে মরক্কোর বিপক্ষে পেনাল্টি শুটআউটে হারে স্পেন। ছবি: সংগৃহীত
কাতারে চলমান ফিফা বিশ্বকাপের আগে পেনাল্টি নিয়ে জুজু কাটানোর উদ্যোগ নিয়েছিলেন স্পেনের কোচ লুইস এনরিকে। টানা এক বছর প্রতি অনুশীলন সেশনের পর বাধ্যতামূলকভাবে ফুটবলারদের পেনাল্টি শুটআউট করিয়েছিলেন তিনি, কিন্তু তাতেও হয়নি কাজের কাজ।

রাশিয়ায় ২০১৮ সালে রাউন্ড অফ সিক্সটিনের ম্যাচে টাইব্রেকারে হেরে বিশ্বকাপ মিশন শেষ হয়েছিল স্প্যানিশদের। ২০২০ সালে ইউরোর ফাইনালে ইতালির বিপক্ষে একইভাবে হারে স্পেন। ফিফা বিশ্বকাপের এবারের আসরেও মরক্কোর বিপক্ষে পেনাল্টি মিস করে কোয়ার্টার ফাইনালের স্বপ্নভঙ্গ হয়েছে দলটির।

কাতারে চলমান বিশ্বকাপের আগে পেনাল্টি নিয়ে সেই জুজু কাটানোর উদ্যোগ নিয়েছিলেন স্পেনের কোচ লুইস এনরিকে। টানা এক বছর প্রতি অনুশীলন সেশনের পর বাধ্যতামূলকভাবে ফুটবলারদের পেনাল্টি শুটআউট করিয়েছিলেন তিনি, কিন্তু তাতেও হয়নি কাজের কাজ।

বিশ্বকাপে পেনাল্টি শুটআউট প্রসঙ্গে এনরিকে বলেছিলেন, ‘আমরা নিজেদের কাজটা ভালোই করেছি। এক বছর আগে সবাইকে জানিয়েছি, আমাদের অন্তত ১ হাজার পেনাল্টি প্র্যাকটিস করতে হবে।

‘সেটি আমরা পরিকল্পনামাফিক করেছিও। পেনাল্টিতে নার্ভ ধরে রাখা কষ্ট। আমরা প্রত্যেকবার প্র্যাকটিস শেষ করে পেনাল্টির প্র্যাকটিস করেছি।’

কোচের সে প্রচেষ্টার প্রতিফলন মাঠে দেখাতে পারেননি স্পেনের ফুটবলাররা।

মঙ্গলবার রাতের ম্যাচে টাইব্রেকারে স্পেনের হয়ে প্রথম শটটি বারে মারেন পাবলো সারবিয়া। দ্বিতীয় শট নেন কার্লস সোলার, কিন্তু সেটি ঠেকিয়ে দেন মরক্কোর গোলরক্ষক।

সার্জিও বুসকেটসের নেয়া তৃতীয় শটটি থেকেও গোলের দেখা না মেলায় বিশ্বকাপের দ্বিতীয় রাউন্ড খেলেই সন্তুষ্ট থাকতে হয় স্পেনের।

আরও পড়ুন:
মেসিকে আটকানোর ফর্মুলা জানেন নেদারল্যান্ডসের কোচ
কোয়ার্টার ফাইনালে কে কার প্রতিপক্ষ

মন্তব্য

খেলা
Who is the opponent in the quarter finals?

কোয়ার্টার ফাইনালে কে কার প্রতিপক্ষ

কোয়ার্টার ফাইনালে কে কার প্রতিপক্ষ স্পেনের বিপক্ষে টাইব্রেকারে ৩টি শট ঠেকিয়ে দলকে জেতানো গোলকিপার ইয়াসিন বুনোকে নিয়ে মরক্কোর খেলোয়াড়দের উদযাপন। ছবি: ফিফা
৩২ দল থেকে টুর্নামেন্টে টিকে রয়েছে মাত্র ৮ দল। শুক্রবার শুরু হবে কোয়ার্টার ফাইনালের ম্যাচগুলো। রাউন্ড অফ সিক্সটিনের মতো এ রাউন্ডের প্রতিদিন থাকছে দুটো করে ম্যাচ।

কাতার বিশ্বকাপের চূড়ান্ত পর্যায় ঘনিয়ে আসছে দ্রুত। পর্তুগাল-সুইজারল্যান্ড ম্যাচ দিয়ে শেষ হয়ে শেষ ষোলোর লড়াই। ৩২ দল থেকে টুর্নামেন্টে টিকে রয়েছে মাত্র ৮ দল।

শুক্রবার শুরু হবে কোয়ার্টার ফাইনালের ম্যাচগুলো। রাউন্ড অফ সিক্সটিনের মতো এ রাউন্ডেও প্রতিদিন থাকছে দুটো করে ম্যাচ।

প্রথম দিনই নামছে টুর্নামেন্টের ফেভারিট ব্রাজিল। রাত ৯টায় তাদের প্রতিপক্ষ ক্রোয়েশিয়া।

ওইদিন রাত ১টায় মাঠে নামছে লিওনেল মেসির আর্জেন্টিনা। তারা লড়বে নেদারল্যান্ডসের বিপক্ষে।

শনিবারের প্রথম ম্যাচে লড়বে স্পেনকে বিদায় করে দেয়া মরক্কো ও ও সুইসদের গুডবাই জানানো পর্তুগাল।

ওইদিন রাত ১টায় হতে যাচ্ছে সম্ভবত এবারের বিশ্বকাপের সবচেয়ে ব্লকবাস্টার ম্যাচ। বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন ফ্রান্স মোকাবিলা করবে উড়ন্ত ইংল্যান্ডকে।

কোয়ার্টার ফাইনালের পর রবি ও সোমবার কোনো খেলা নেই। মঙ্গলবার প্রথম ও বুধবার দ্বিতীয় সেমিফাইনাল।

১৭ ডিসেম্বর শনিবার হবে তৃতীয় ও চতুর্থ স্থান নির্ধারনী ম্যাচ আর পরদিন হবে শিরোপা লড়াইয়ের ফাইনাল।


কোয়ার্টার ফাইনাল লাইন আপ

ব্রাজিল-ক্রোয়েশিয়া: শুক্রবার রাত ৯টা

আর্জেন্টিনা-নেদারল্যান্ডস: শুক্রবার রাত ১টা

মরক্কো-পর্তুগাল: শনিবার রাত ৯টা

ফ্রান্স-ইংল্যান্ড: শনিবার রাত ১টা

আরও পড়ুন:
রামোসের হ্যাটট্রিকে সুইজারল্যান্ডকে উড়িয়ে শেষ আটে পর্তুগাল
কাতার বিশ্বকাপের প্রথম হ্যাটট্রিক রামোসের
স্পেনকে বিদায় করে ইতিহাস গড়ল মরক্কো

মন্তব্য

খেলা
Portugal in the last eight after beating Switzerland with Ramos hat trick

রামোসের হ্যাটট্রিকে সুইজারল্যান্ডকে উড়িয়ে শেষ আটে পর্তুগাল

রামোসের হ্যাটট্রিকে সুইজারল্যান্ডকে উড়িয়ে শেষ আটে পর্তুগাল ম্যাচ জয়ের পর গনসালো রামোসের উচ্ছ্বাস। ছবি: ফিফা
৬-১ গোলের জয়ে পর্তুগালের পক্ষে হ্যাটট্রিক করেছেন গনসালো রামোস। একটি করে গোল এসেছে পেপে, রাফায়েল গুয়েরেরো ও রাফায়েল লিয়াওয়ের কাছ থেকে। সুইজারল্যান্ডের হয়ে একটি গোল শোধ করেন মানুয়েল আকাঞ্জি।

ফিফা বিশ্বকাপের শেষ আটে শেষ দল হিসেবে যোগ দিয়েছে পর্তুগাল। সুইজারল্যান্ডকে ৬-১ গোলে হারিয়েছে তারা। পর্তুগালের পক্ষে হ্যাটট্রিক করেছেন গনসালো রামোস। একটি করে গোল এসেছে পেপে, রাফায়েল গুয়েরেরো ও রাফায়েল লিয়াওয়ের কাছ থেকে। সুইজারল্যান্ডের হয়ে একটি গোল শোধ করেন মানুয়েল আকাঞ্জি।

ম্যাচের প্রথমার্ধে ২-০ গোলে এগিয়ে ছিল পর্তুগাল। দ্বিতীয়ার্ধে তারা স্কোর করে আরও চার গোল।

কাতারের লুসাইল আইকনিক স্টেডিয়ামে গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে দলের অধিনায়ক ও সবচেয়ে অভিজ্ঞ খেলোয়াড় ক্রিস্টিয়ানো রোনালডোকে ছাড়াই একাদশ সাজান পর্তুগালের কোচ ফার্নান্দো সান্তোস। ধীরগতি ও একমাত্রিক খেলার পাশাপাশি কোচের সঙ্গে বিবাদে জায়গা হারান আন্তর্জাতিক ফুটবল রেকর্ড গোল করা রোনালডো।

ম্যাচে অবশ্য রোনালডোর অভাব টের পেতে দেননি জোয়াও ফেলিশ, বার্নার্ডো সিলভারা। রোনালডোকে ফাইনাল থার্ডের বলের জোগান দিতে হবে, এই দায়িত্ব থেকে মুক্তি পেয়ে অনেকটা সৃষ্টিশীল হয়ে ওঠে পর্তুগালের মাঝমাঠ।

এমনই এক গোছানো আক্রমণ থেকে বক্সের বাইরে বল পেয়ে যান ফেলিশ। তার ক্রসে বক্সে বল রিসিভ করেন রামোস। চমৎকার বডি ডজে মার্কারকে কাটিয়ে শট নিয়ে পরাস্ত করেন সুইজারল্যান্ডের গোলকিপার ইয়ান সমারকে।

শুধু সৃষ্টিশীলতাতেই নয় ডেড বলেও এগিয়ে ছিল পর্তুগাল। তেমনই এক পরিস্থিতিতে ব্যবধান দ্বিগুণ করে তারা।

৩৩ মিনিটে ফার্নান্দেসের নেয়া কর্নার কিকে মাথা ছুঁইয়ে আবারও সমারকে ফাঁকি দেন পেপে। ৩৯ বছর ২৮৩ দিন বয়সে গোল করে বিশ্বকাপ নকআউটে সবচেয়ে বয়সী গোলস্কোরার বনে যান অভিজ্ঞ এ ডিফেন্ডার।

সুইজারল্যান্ড ম্যাচে ফেরার সুযোগ পেয়েছিল ফ্রি-কিক থেকে। ৩০ গজ দূর থেকে নেয়া জারদান শাকিরির কিক অল্পের জন্য পোস্টের বাইরে চলে গেলে নির্ভার থাকে পর্তুগাল।

সুইসরা গোলের দেখা না পাওয়ায় ২-০ গোলের লিড নিয়ে বিরতিতে যায় পর্তুগাল।

দ্বিতীয়ার্ধে আরও ধারাল হয়ে ওঠে তারা। ধীরগতির সুইস মিডফিল্ডকে কোনো জায়গা না দিয়ে একের পর এক আক্রমণো রচনা করেন ব্রুনো ফার্নান্দেস-বার্নার্ডো সিলভারা। আর এর সুফল পান রামোস।

৫১ মিনিটে দিয়োগো দালোতের ক্রস পেয়ে নিজের দ্বিতীয় গোল করেন রামোস। আর ম্যাচকে সুইজারল্যান্ডের ধরাছোঁইয়ার বাইরে নিয়ে যান রাফায়েল গুয়েরেরো। তার গোলেই পর্তুগালের পক্ষে স্কোর দাঁড়ায় ৪-০।

এর ৩ মিনিট পর হঠাৎই মানুয়েল আকাঞ্জির গোলে লড়াইয়ে ফেরার আভাস দেয় সুইজারল্যান্ড। ম্যাচে তখনও বাকি ৩০ মিনিটেরও বেশি সময়।

তবে, আশায় পানি ঢেলে দেন রামোস। ৬৭ মিনিটে পূর্ণ করেন নিজের হ্যাটট্রিক। এবারও তার বলের জোগানদাতা ছিলেন ফেলিশ।





ওই গোলে নিশ্চিত হয়ে যায় সুইজারল্যান্ডের বড় হার। আর রামোস ২০২২ বিশ্বকাপের প্রথম হ্যাটট্রিক করা ফুটবলার হিসেবে নিজের নাম ওঠান রেকর্ডবইয়ে।

৫ গোল খেয়ে হাল ছেড়ে দেয়া সুইজারল্যান্ডকে শেষ ধাক্কা দেন রাফায়েল লিয়াও। ৯২ মিনিটে তার করা গোলেই সুইজারল্যান্ডের বিপক্ষে নিজেদের সবচেয়ে বড় জয়ের রেকর্ড নিয়ে মাঠ ছাড়ে পর্তুগাল।

রেকর্ড জয়ের উৎসব করার জন্য পর্তুগাল হাতে পাচ্ছে দুই দিন সময়। কারণ শনিবার সেমিতে ওঠার লড়াইয়ে তাদের নামতে হবে স্পেনকে বিদায় করে দেয়া মরক্কোর বিপক্ষে।

আরও পড়ুন:
প্রথমার্ধে রোনালডোকে দরকার পড়েনি পর্তুগালের
স্পেনকে বিদায় করে ইতিহাস গড়ল মরক্কো

মন্তব্য

খেলা
Ramos first hat trick of Qatar World Cup

কাতার বিশ্বকাপের প্রথম হ্যাটট্রিক রামোসের

কাতার বিশ্বকাপের প্রথম হ্যাটট্রিক রামোসের হ্যাটট্রিকের পর রামোসের উচ্ছ্বাস। ছবি: টুইটার
হ্যাটট্রিক এলো এমন একজনের কাছ থেকে যিনি বিশ্ব ফুটবলের বড় কোনো নাম নন। তবে সুইজারল্যান্ডের বিপক্ষে ৩ গোল করে নিজের নামটা জোরেশোরেই জানান দিলেন গনসালো রামোস।

কাতার বিশ্বকাপের প্রথম হ্যাটট্রিকের জন্য অপেক্ষা করতে হলো শেষ ষোলোর শেষ ম্যাচ পর্যন্ত। আর হ্যাটট্রিক এলো এমন একজনের কাছ থেকে যিনি বিশ্ব ফুটবলের বড় কোনো নাম নন। তবে সুইজারল্যান্ডের বিপক্ষে ৩ গোল করে নিজের নামটা জোরেশোরেই জানান দিলেন গনসালো রামোস।

সুইজারল্যান্ডের বিপক্ষে ম্যাচ শুরুর আগে থেকেই বাড়তি চাপ ছিল রামোসের ওপর। কারণ দলের সবচেয়ে অভিজ্ঞ তারকা ক্রিস্টিয়ানো রোনালডোকে বেঞ্চে বসিয়ে রামোসের ওপরই গোলস্কোরিংয়ের দায়িত্ব দেন পর্তুগালের কোচ ফার্নান্দো সান্তোস।

আর গুরু এই দায়িত্ব পেয়ে যেন নিজেকে ছাড়িয়ে গেলেন ২১ বছর বয়সী রামোস। দুই বছর আগে সিনিয়র ক্যারিয়ার শুরু করেন পর্তুগালের বিখ্যাত ক্লাব বেনফিকার হয়ে। বিশ্বকাপের দুই মাস আগে সেপ্টেম্বরে প্রথমবার দলে ডাক পান। কিন্তু ইউয়েফা নেশনস লিগে স্পেন ও চেক রিপাবলিকের বিপক্ষে ম্যাচে অভিষেকের সুযোগ পাননি।

পর্তুগাল জাতীয় দলের হয়ে তার অভিষেক হয় বিশ্বকাপের ঠিক আগে। ১৭ নভেম্বর বিশ্বকাপের প্রস্তুতি ম্যাচে নাইজেরিয়ার বিপক্ষে তার অভিষেক হয়।

আর বিশ্বকাপের নকআউট মঞ্চে নেমেই বাজিমাত করলেন। প্রথমার্ধে এক গোলের পর দ্বিতীয়ার্ধে দুই গোল করেন এ ফরোয়ার্ড।

সুইজারল্যান্ডের বিপক্ষে ১৭ মিনিটে গোছানো এক দলীয় আক্রমণে বক্সের বাইরে বল পেয়ে যান পর্তুগিজ অ্যাটাকার জোয়াও ফেলিশ। তার ক্রসে বক্সে বল রিসিভ করেন রামোস। চমৎকার বডি ডজে মার্কারকে কাটিয়ে শট নিয়ে পরাস্ত করেন সুইজারল্যান্ডের গোলকিপার ইয়ান সমারকে।

বিরতির পর ৫১ মিনিটে দিয়োগো দালোতের ক্রস পেয়ে নিজের দ্বিতীয় গোল করেন রামোস। ১৬ মিনিট পর পূর্ণ করেন হ্যাটট্রিক।

এবারও তার বলের জোগানদাতা ছিলেন ফেলিশ। ওই গোলে নিশ্চিত হয়ে যায় সুইজারল্যান্ডের বড় হার।

আর রামোস ২০২২ বিশ্বকাপের প্রথম হ্যাটট্রিক করা ফুটবলার হিসেবে নিজের নাম ওঠান রেকর্ডবইয়ে। গত বিশ্বকাপেও প্রথম হ্যাটট্রিক এসেছিল এক পর্তুগিজের পা থেকে।

স্পেনের বিপক্ষে চার বছর আগে গ্রুপ পর্বে হ্যাটট্রিক করেছিলেন, রামোস যার বদলে নেমেছেন সেই রোনালডো।

আরও পড়ুন:
প্রথমার্ধে রোনালডোকে দরকার পড়েনি পর্তুগালের
স্পেনকে বিদায় করে ইতিহাস গড়ল মরক্কো
কিছু ফুটবলারের চেহারা ঢাকা কেন?

মন্তব্য

p
উপরে