× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

খেলা
Hungary top the table with victory over Germany England bottom
hear-news
player
google_news print-icon
নেশনস লিগ

জার্মানিকে হারিয়ে শীর্ষে হাঙ্গেরি, তলানিতে ইংল্যান্ড

জার্মানিকে-হারিয়ে-শীর্ষে-হাঙ্গেরি-তলানিতে-ইংল্যান্ড
জার্মানির বিপক্ষে জয় উদযাপন হাঙ্গেরির ফুটবলারদের। ছবি: এএফপি
নেশনস লিগে ৫ ম্যাচে ৩ জয় এবং একটি করে ড্র ও হার নিয়ে ১০ পয়েন্ট পেয়ে টেবিলের শীর্ষে হাঙ্গেরি। ৮ ও ৬ পয়েন্ট নিয়ে দ্বিতীয় ও তৃতীয় অবস্থানে আছে ইতালি ও জার্মানি। কোনো ম্যাচ জিততে না পারা ইংল্যান্ড রয়েছে পয়েন্ট টেবিলের তলানিতে।

ইউয়েফা নেশনস লিগের ফাইনালে জায়গা করে নেয়ার পথে আরও এক ধাপ এগিয়ে গেছে হাঙ্গেরি। দারুণ ফর্মে থাকা দলটি জার্মানির বিপক্ষে জয় পেয়েছে ১-০ গোলের ব্যবধান।

অন্যদিকে নেশনস লিগে রাতের আরেক ম্যাচে ইংল্যান্ডকে একই ব্যবধানে হারিয়েছে ইতালি।

নেশনস লিগে ৫ ম্যাচে ৩ জয় এবং একটি করে ড্র ও হার নিয়ে ১০ পয়েন্ট পেয়ে টেবিলের শীর্ষে হাঙ্গেরি। ৮ ও ৬ পয়েন্ট নিয়ে দ্বিতীয় ও তৃতীয় অবস্থানে আছে ইতালি ও জার্মানি। কোনো ম্যাচ জিততে না পারা ইংল্যান্ড রয়েছে পয়েন্ট টেবিলের তলানিতে।

লাইপজিগের রেড বুল অ্যারেনায় শুক্রবার রাতে হাঙ্গেরির হয়ে একমাত্র গোলটি করেন এডাম সলোই। বল দখলের লড়াইয়ে জার্মানি এগিয়ে থাকলেও শেষ পর্যন্ত হার নিয়েই মাঠ ছাড়তে হয় হান্সি ফ্লিকের শিষ্যদের।

ঘরের মাঠে এই হারে শিরোপা লড়াইয়ে যাওয়ার আশা শেষ হয়ে গেছে জার্মানির। প্রতিপক্ষের মাঠে প্রথম লেগে ম্যাচের শুরুতেই গোল খেয়ে বসে জার্মানি। এবারও গোলটি হজম করতে হয়েছে ম্যাচ শুরুর অল্প সময়ের মধ্যেই।

ম্যাচের ১৭তম মিনিটে দারুণ গোলে দলকে এগিয়ে নেন অ্যাডান সালাই। কর্নার থেকে উড়ে আসা বলকে ঠিকানায় পাঠান তিনি। এতে করে একমাত্র গোলে জয়ে পেয়ে যায় হাঙ্গেরি।

রাতে আরেক ম্যাচে ইতালির কাছে হেরে ইউয়েফা নেশনস লিগের দ্বিতীয় স্তরে নেমে গেছে ইংল্যান্ড।

খেলার প্রথমার্ধে দুই দলই অগোছালো ফুটবল খেলেছে, তবে দ্বিতীয়ার্ধের খেলার ৬৮তম মিনিটের গোলে ইতালিকে এগিয়ে দেন জাকোমো রাসপাদরি। লিওনার্দো বোনুচ্চির উঁচু করে বাড়ানো বল নিয়ন্ত্রণে নিয়ে দুর্দান্ত শটে গোল পান তিনি।

১-০ গোলে পিছিয়ে পড়লে আর আক্রমণের ধার বাড়লেও গোলের দেখা পায়নি ইংলিশরা।

আরও পড়ুন:
৭০ বছর পর খেলার মাঠে ‘গড সেভ দ্য কিং’

মন্তব্য

আরও পড়ুন

খেলা
A different first for Messi on the night of a thousand matches

হাজার ম্যাচের রাতে মেসির অন্য রকম ‘প্রথম’

হাজার ম্যাচের রাতে মেসির অন্য রকম ‘প্রথম’ অস্ট্রেলিয়ার ডিফেন্স ঘিরে রয়েছে লিওনেল মেসিকে। ছবি: টুইটার
নতুন এক অর্জন যোগ হয়েছে মেসির ব্যক্তিগত রেকর্ডে। এই প্রথম বিশ্বকাপের নকআউট পর্বে গোল করলেন সর্বকালের অন্যতম সেরা এ ফুটবলার।

উৎসবের মঞ্চটা প্রস্তুতই ছিল। সেটাকে নিজের মতো করে সাজালেন লিওনেল মেসি। অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে পেশাদার ক্যারিয়ারের হাজারতম ম্যাচ খেলতে নেমে করলেন অসাধারণ এক গোল ও দলকে নিয়ে গেলেন কোয়ার্টার ফাইনালে।

৩৫ বছরের এ তারকা নকআউটের প্রথম ম্যাচেও বেশ কিছু রেকর্ড ভেঙেছেন। অজিদের বিপক্ষে করা গোলটি ছিল জাতীয় দলের জার্সিতে তার ৯৩তম আর সব মিলিয়ে ৭৮৯তম গোল। আর বিশ্বকাপে নবম।

এই গোলে তিনি বিশ্বকাপের গোল সংখ্যা ছাড়িয়ে গেছেন কিংবদন্তি ম্যারাডোনাকে। তার সামনে ১০ গোল নিয়ে আছেন আরেক আর্জেন্টাইন গ্রেট গ্যাব্রিয়েল বাতিস্তুতা।

এতগুলো অর্জনের ভিড়ে নতুন এক অর্জন যোগ হয়েছে তার ব্যক্তিগত রেকর্ডে। এই প্রথম বিশ্বকাপের নকআউট পর্বে গোল করলেন সর্বকালের অন্যতম সেরা এ ফুটবলার। এর আগে বিশ্বকাপে তার করা ৮টি গোলই এসেছে গ্রুপপর্বে।

২০০৬ সালে বিশ্বকাপে মেসি করেন ১ গোল। ২০১০-এ জালের দেখা পাননি। ২০১৪ সালের সেরা খেলোয়াড়ের পুরস্কার জয়ের পাশাপাশি করেন ৪ গোল। আর ২০১৮-তে তার পা থেকে আসে ১ গোল। এবারে এখন পর্যন্ত করেছেন ৩টি।

বিশ্বকাপে নকআউটে ৯টি ম্যাচ খেলেছেন তিনি এবারেরটিসহ। মোট ৭৯১ মিনিট নকআউটে খেলে ২৪টি শটের পর প্রথম গোল পেলেন মেসি।

নেদারল্যান্ডসের বিপক্ষে নিজের রেকর্ডটা আরও উন্নত করে নিতে নিশ্চিতভাবেই মুখিয়ে থাকবেন তিনি। ডাচদের বিপক্ষে মেসির অনন্য এক রেকর্ড রয়েছে। নেদারল্যান্ডসের বিপক্ষে কখনই পরাজয়ের স্বাদ পাননি আর্জেন্টিনার নম্বর টেন।

আরও পড়ুন:
লড়াকু অজিদের বিদায় করে কোয়ার্টারে আর্জেন্টিনা
অনন্য মেসির গোলে এগিয়ে আর্জেন্টিনা
একাদশে নেই দি মারিয়া
কক্সবাজার সৈকতে হাতে আঁকা মেসি
সবার আগে শেষ আটে নেদারল্যান্ডস

মন্তব্য

খেলা
Argentina sent off the fighter Ajid in the quarter

লড়াকু অজিদের বিদায় করে কোয়ার্টারে আর্জেন্টিনা

লড়াকু অজিদের বিদায় করে কোয়ার্টারে আর্জেন্টিনা আর্জেন্টিনার দ্বিতীয় গোলের পর উল্লসিত হুলিয়ান আলভারেস। ছবি: টুইটার
লিওনেল মেসি ও হুলিয়ান আলভারেসের গোলে লিড নেয় আর্জেন্টিনা। এনজো ফার্নান্দেসের আত্মঘাতী গোলে ম্যাচে ফেরে অস্ট্রেলিয়া। আগামী শুক্রবার রাত ১টায় কোয়ার্টার ফাইনালে আর্জেন্টিনা লড়বে নেদারল্যান্ডসের বিপক্ষে। 

অস্ট্রেলিয়াকে ২-১ গোলে হারিয়ে দ্বিতীয় দল হিসেবে কাতার বিশ্বকাপের কোয়ার্টার ফাইনাল নিশ্চিত করেছে আর্জেন্টিনা। লিওনেল মেসি ও হুলিয়ান আলভারেসের গোলে লিড নেয় আর্জেন্টিনা। এনজো ফার্নান্দেসের আত্মঘাতী গোলে ম্যাচে ফেরে অস্ট্রেলিয়া।

শেষ সময়টুকুতে অস্ট্রেলিয়া দাঁতে-দাঁত চেপে লড়াই করলেও ম্যাচ বের করতে পারেনি। শেষ আটে নেদারল্যান্ডসের বিপক্ষে ম্যাচ চূড়ান্ত করে ফেলে মেসির দল।

উৎসবের আবহে নিজেদের নকআউট ম্যাচে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে নামে আর্জেন্টিনা। লিওনেল মেসির ১০০০ তম পেশাদার ম্যাচে ভক্তদের শোরগোল অন্যান্য দিনের তুলনায় যেন কিছুটা বেশিই ছিল।

তাদেরকে নিরাশ করেননি আর্জেন্টিনার তালিসমান। ৩৫ মিনিটে তার গোলেই লিড নিয়ে বিরতিতে যায় আর্জেন্টিনা।

শুরু থেকে অস্ট্রেলিয়ার ওপর চড়াও হয়ে খেলতে থাকে আর্জেন্টিনা। মাঝমাঠের দখল নেন রদ্রিগো দে পল ও এনজো ফার্নান্দেস। সেট পিস থেকে দুই-একবার অস্ট্রেলিয়া আক্রমণের চেষ্টা করলেও সুফল পায়নি। নিকোলাস ওতামেন্দির নেতৃত্বে আর্জেন্টিনার রক্ষণভাগ ছিল অটুট।

আক্রমণভাগে মেসি ও হুলিয়ান আলভারেসের পায়েই ছিল অধিকাংশ বল। মেসিকে শুরু থেকে কড়া পাহারায় রাখেন তিন অজি ডিফেন্ডার।

শেষ রক্ষা হয়নি। ৩৪ মিনিটে অস্ট্রেলিয়ার বক্সের বাইরে ফ্রি-কিক পায় আর্জেন্টিনা। মেসির নেয়া কিক অজিদের রক্ষণ দেয়াল ভেদ করতে না পারলেও মেসির পা থেকে ফিরতি বল পেয়ে যান আলেক্সিস ম্যাকঅ্যালিস্টার।

তিনি দ্রুত বল বাড়ান বক্সের ডান প্রান্ত ঘেষে দাঁড়ানো ওতামেন্দির দিকে। ওতামেন্দি প্রথম টাচেই বল পাঠিয়ে দেন দ্রুত বক্সে ঢোকা মেসির কাছে।

বাম পায়ের নিঁখুত শটে অস্ট্রেলিয়ার অধিনায়ক ও গোলকিপার ম্যাট রায়ানকে বোকা বানান আর্জেন্টিনার অধিনায়ক। এটি ছিল বিশ্বকাপে মেসির নবম গোল ও নকআউট পর্বে প্রথম। ১০০০ ক্যারিয়ার ম্যাচে ৭৮৯ নম্বর গোল মেসির।

বিরতির পরও ম্যাচের নিয়ন্ত্রণ আর্জেন্টাইনদের কাছে ছিল। ৫৭ মিনিটে তারা ব্যবধান দ্বিগুণ করে ফেলে।

ডিফেন্ডার কাই রওলেসের ব্যকপাস ঠিকমতো ক্লিয়ার করতে পারেননি অস্ট্রেলিয়ার গোলকিপার ম্যাট রায়ান। সুযোগটা পুরো লুফে নেন বক্সের ভেতরে থাকা আলভারেস। মাপা শটে লক্ষ্যভেদ করে ২-০ গোলে এগিয়ে দেন আর্জেন্টিনাকে।

তখন মনে হচ্ছিল ম্যাচটা সহজেই নিজেদের পকেটে পুরে নেবে আর্জেন্টিনা। কিন্তু অস্ট্রেলিয়া শুরু করে তাদের ফিরে আসার লড়াই।

মিনিট বিশেক পর অজি ফরোয়ার্ড ক্রেইগ গুডউইন প্রায় ২৫ গজ দূর থেকে জোরাল শট নেন আর্জেন্টিনার গোল লক্ষ্য করে। বল ক্লিয়ার করতে যেয়ে নিজেদের জালে জড়িয়ে দেন এনজো ফার্নান্দেজ। ৭৭ মিনিটের এই গোলে উজ্জীবিত হয় অজিরা।


আর্জেন্টিনার এরিয়াল বলে দুর্বলতার সুযোগ নিতে বক্সের চারপাশে উঁচু ক্রস ছাড়া শুরু করেন জন আরভাইন ও অ্যারন মুইরা। রক্ষণভাগের দৃঢ়তায় বারবার বল ক্লিয়ার করছিল আর্জেন্টিনা।

অন্যপ্রান্তে ম্যাচভাগ্য নিশ্চিত করে দেয়ার সুযোগ পান লাউতারো মার্তিনেস। মেসি ড্রিবল করে বল ছাড়েন ফাঁকায় দাঁড়ানো এ স্ট্রাইকারের উদ্দেশে। গোলকিপারকে একা পেয়েও লক্ষ্যভেদ করতে পারেননি মার্তিনেস।

ম্যাচের অতিরিক্ত সময়ের শেষ মিনিটে শেষ সুযোগ পায় অস্ট্রেলিয়া। বক্সে ফাঁকায় বল পেয়ে যান গারাং কুয়োল। দ্রুত গতিতে ঘুরে শট নিলেও সেটি কাছ থেকে ঠেকিয়ে দলকে বিপদমুক্ত রাখেন আর্জেন্টিনার গোলকিপার এমিলিয়ানো মার্তিনেস।

পরের মুহূর্তে রেফারির বাঁশি বেজে উঠলে ২-১ গোলের জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে আর্জেন্টিনা। আগামী শুক্রবার রাত ১টায় কোয়ার্টার ফাইনালে তারা লড়বে নেদারল্যান্ডসের বিপক্ষে।

আরও পড়ুন:
অনন্য মেসির গোলে এগিয়ে আর্জেন্টিনা
একাদশে নেই দি মারিয়া
কক্সবাজার সৈকতে হাতে আঁকা মেসি

মন্তব্য

খেলা
Argentinian ahead with the unique goal of Messi

অনন্য মেসির গোলে এগিয়ে আর্জেন্টিনা

অনন্য মেসির গোলে এগিয়ে আর্জেন্টিনা অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে গোলের পর লিওনেল মেসির উদযাপন। ছবি: টুইটার
৩৫ মিনিটে তার গোলেই লিড নিয়ে বিরতিতে গেছে আর্জেন্টিনা। এটি ছিল বিশ্বকাপের মেসির নবম গোল ও নকআউট পর্বে প্রথম। ১০০০ ক্যারিয়ার ম্যাচে ৭৮৯ গোল মেসির।

উৎসবের আবহে নিজেদের নকআউট ম্যাচে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে নামে আর্জেন্টিনা। লিওনেল মেসির ১০০০তম পেশাদার ম্যাচে ভক্তদের শোরগোল অন্যান্য দিনের তুলনায় যেন কিছুটা বেশিই ছিল।

তাদের নিরাশ করেননি আর্জেন্টিনার তালিসমান। ৩৫ মিনিটে তার গোলেই লিড নিয়ে বিরতিতে গেছে আর্জেন্টিনা।

শুরু থেকে অস্ট্রেলিয়ার ওপর চড়াও হয়ে খেলতে থাকে আর্জেন্টিনা। মাঝমাঠের দখল নিয়ে নেন রদ্রিগো দে পল ও এনজো ফার্নান্দেস। সেট পিস থেকে দুই-একবার অস্ট্রেলিয়া আক্রমণের চেষ্টা করলেও সুফল পায়নি। নিকোলাস ওতামেন্দির নেতৃত্বে আর্জেন্টিনার রক্ষণভাগ ছিল অটুট।

আক্রমণভাগে মেসি ও হুলিয়ান আলভারেসের পায়েই ছিল অধিকাংশ বল। মেসিকে শুরু থেকে কড়া পাহারায় রাখেন তিন অজি ডিফেন্ডার।

শেষ রক্ষা হয়নি। ৩৪ মিনিটে অস্ট্রেলিয়ার বক্সের বাইরে ফ্রি-কিক পায় আর্জেন্টিনা। মেসির নেয়া কিক অজিদের রক্ষণ দেয়াল ভেদ করতে না পারলেও মেসির পা ঘুরে ফিরতি বল পেয়ে যান আলেক্সিস ম্যাকঅ্যালিস্টার।

তিনি দ্রুত বল বাড়ান বক্সের ডান প্রান্ত ঘেঁষে দাঁড়ানো ওতামেন্দির দিকে। ওতামেন্দি প্রথম টাচেই বল পাঠিয়ে দেন দ্রুত বক্সে ঢোকা মেসির কাছে।

বাম পায়ের নিখুঁত শটে অস্ট্রেলিয়ার অধিনায়ক ও গোলকিপার ম্যাট রায়ানকে বোকা বানান আর্জেন্টিনার অধিনায়ক।

এটি ছিল বিশ্বকাপের মেসির নবম গোল ও নকআউট পর্বে প্রথম। ১০০০ ক্যারিয়ার ম্যাচে ৭৮৯ নম্বর গোল মেসির। গোল হজম করে ফিরে আসার সময় প্রথমার্ধে আর পায়নি অস্ট্রেলিয়া। ১-০ গোলে এগিয়ে থেকে বিরতিতে যায় আলবিসেলেস্তেরা।

আরও পড়ুন:
একাদশে নেই দি মারিয়া
কক্সবাজার সৈকতে হাতে আঁকা মেসি
সবার আগে শেষ আটে নেদারল্যান্ডস

মন্তব্য

খেলা
Di Maria is not in the XI against Australia

একাদশে নেই দি মারিয়া

একাদশে নেই দি মারিয়া ম্যাচের আগে প্রস্তুত আর্জেন্টিনার ড্রেসিংরুম। ছবি: টুইটার
চোট থেকে সেরে উঠলেও শুরুর একাদশে দি মারিয়াকে রাখেননি কোচ। তার জায়গায় কোচ লিওনেল স্কালোনি বেছে নিয়েছেন পাপু গোমেসকে। তার সঙ্গে আক্রমণ ভাগে থাকছেন লিওনেল মেসি ও হুলিয়ান আলভারেস।
গ্রুপপর্বে পোল্যান্ডের বিপক্ষে শেষ ম্যাচে চোট পান আর্জেন্টিনার অভিজ্ঞ উইঙ্গার আনহেল দি মারিয়া। যে কারণে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে আর্জেন্টিনার শুরুর একাদশে নেই তিনি।
চোট থেকে সেরে উঠলেও শুরুর একাদশে দি মারিয়াকে রাখেননি কোচ। তার জায়গায় কোচ লিওনেল স্কালোনি বেছে নিয়েছেন পাপু গোমেসকে। তার সঙ্গে আক্রমণ ভাগে থাকছেন লিওনেল মেসি ও হুলিয়ান আলভারেস।
গোলপোস্ট আগলাবেন এমিলিয়ানো মার্তিনেস। ডিফেন্সে ফর্মে থাকা নিকোলাস ওতামেন্দির সঙ্গী ক্রিস্টিয়ান রোমেরো, মারকোস আকুনিয়া ও নায়ুয়েল মলিনা।
মাঝমাঠে রদ্রিগো দে পল শুরু করছেন ম্যাচ। তার সঙ্গে রয়েছে এনজো ফার্নান্দেস ও আলেক্সিস ম্যাকঅ্যালিস্টার।
আর্জেন্টিনার একাদশ: এমিলিয়ানো মার্তিনেস, নিকোলাস ওতামেন্দি, ক্রিস্টিয়ান রোমেরো, মারকোস আকুনিয়া, নায়ুয়েল মলিনা, এনজো ফার্নান্দেস, আলেক্সিস ম্যাকঅ্যালিস্টার, লিওনেল মেসি, হুলিয়ান আলভারেস ও পাপু গোমেস।

আরও পড়ুন:
কক্সবাজার সৈকতে হাতে আঁকা মেসি
সবার আগে শেষ আটে নেদারল্যান্ডস
আর্জেন্টিনা-অস্ট্রেলিয়া ম্যাচে পোলিশ রেফারি

মন্তব্য

খেলা
Messis biggest picture hand painted on Coxs Bazar beach

কক্সবাজার সৈকতে হাতে আঁকা মেসি

কক্সবাজার সৈকতে হাতে আঁকা মেসি হাতে আঁকা মেসির ছবি ঘিরে কক্সবাজার সৈকতে ভক্তরা। ছবি: নিউজবাংলা
সাদা কাপড়ে অ্যাক্রেলিক রঙ দিয়ে আঁকা হয়েছে মেসির ছবি। এর দৈর্ঘ্য ৩৪ ফুট এবং প্রস্থ ২২ ফুট। আয়োজক ও শিল্পীর দাবি, কাপড়ে আঁকা এই ছবিটিই বিশ্বের মধ্যে হাতে আঁকা মেসির সবচেয়ে বড় ছবি।

কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতে হয়ে গেল হাতে আঁকা ফুটবলার লিওনেল মেসির ছবির প্রদর্শনী। শিল্পী তারিকুল ইসলাম ও হাসিঘর ফাউন্ডেশন কক্সবাজারের উদ্যোগে শনিবার বিকেলে সৈকতের সুগন্ধা পয়েন্টে এই প্রদর্শনীর আয়োজন করা হয়। সৃষ্টিশীল এই প্লেমেকারের ছবি দেখতে সৈকতে ছিল পর্যটক ও মেসি ভক্তদের ভিড়।

ছবির কারিগর শিল্পী তারিকুল ইসলামের দাবি, এটি হাতে আঁকা মেসির ‘সবচেয়ে বড় ছবি’।

আয়োজকরা বলছেন, ‘ফুটবল বিশ্বকাপ উপলক্ষে প্রিয় খেলোয়াড় লিওনেল মেসির সবচেয়ে বড় ছবি সাদা কাপড়ে অ্যাক্রেলিক রঙ দিয়ে আঁকা হয়েছে। এর দৈর্ঘ্য ৩৪ ফুট এবং প্রস্থ ২২ ফুট। তাদের দাবি কাপড়ে আঁকা এই ছবিটি হবে বিশ্বের মধ্যে হাতে আঁকা মেসির সবচেয়ে বড় ছবি। এই ছবিতে সাত রঙের ব্যবহার হয়েছে।’

শিল্পী তারিকুল ইসলাম আরও বলেন, “হাতে আঁকা মেসির ছবি ছাড়াও মিষ্টি কুমড়া বীজে আঁকা ক্ষুদ্র আটটি ছবি রয়েছে। নিজস্ব শিল্পকর্ম দিয়ে তারিকুল ‘শেখ হাসিনা ইয়ুথ অ্যাওয়ার্ড–২০২২’ পেয়েছেন। জায়গা করে নিয়েছেন ‘এশিয়া বুক অফ রেকর্ডে’।”

মেসির ভক্ত কক্সবাজার সরকারি কলেজের শিক্ষার্থী রবিউল আলম বলেন, ‘লা লিগা (১৮৩) এবং কোপা আমেরিকার (১২) ইতিহাসে সর্বোচ্চ গোলে সহায়তাকারীর কৃতিত্বেরও মালিক মেসি। জাতীয় দল এবং ক্লাবের হয়ে তিনি ৭০০ এর অধিক পেশাদার গোল করেছেন। পাশাপাশি মেসি একজন সৃষ্টিশীল প্লেমেকার হিসেবেও পরিচিত। আমি মেসির ভক্ত। তার ছবি নিয়ে প্রদর্শনীতে এসে খুব ভালো লাগছে।’

কক্সবাজারে ঘুরতে আসা রাজশাহীর বাসিন্দা রাজিব হাসান ও রুমানা বলেন, ‘মেসির ছবি প্রদর্শনীর খবর শুনে ছুটে এসেছি। বেড়াতে এসে সমুদ্র দর্শনের সঙ্গে মেসির ছবির পাশে ক্যামরাবন্দি হতে পারা অতিরিক্ত পাওয়া।’

রামু ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক স্কুল অ্যান্ড কলেজের শিক্ষার্থী আফরা রুমালি অথৈ বলেন, ‘আমি যদিও ব্রাজিল সমর্থক। কিন্ত মেসি একজন ভালো ফুটবলার। সেই জায়গা থেকে আমি প্রদর্শনীতে এসেছি। অন্যদের মতো আমিও তার ছবির পাশে দাঁড়িয়ে ছবি তুলেছি।’

শিল্পী তারিকুলের বাড়ি বগুড়ার ধুনট উপজেলার বেড়েরবাড়ি। তার বাবার নাম মো. আব্দুল কাফি প্রামাণিক। ছবি আঁকার হাতে খড়ি বড় ভাই তাজমিনুর রহমান তাজের মাধ্যমে। তারিকুল রামু ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক স্কুল অ্যান্ড কলেজে চারু ও কারুকলা বিষয়ে সহকারী শিক্ষক।

আরও পড়ুন:
সবার আগে শেষ আটে নেদারল্যান্ডস
আর্জেন্টিনা-অস্ট্রেলিয়া ম্যাচে পোলিশ রেফারি
ফুটবল মাঠে কী কাজ অধিনায়কের?
নেদারল্যান্ডস-যুক্তরাষ্ট্র ম্যাচ দিয়ে শুরু বিশ্বকাপের নকআউট
আর্জেন্টিনার সম্ভাব্য একাদশ

মন্তব্য

খেলা
First up is the Netherlands in the last eight

সবার আগে শেষ আটে নেদারল্যান্ডস

সবার আগে শেষ আটে নেদারল্যান্ডস আমেরিকার বিপক্ষে প্রথম গোল করার পর সতীর্থদের সঙ্গে উদযাপনে মেম্ফিস ডিপায়। ছবি: টুইটার
নেদারল্যান্ডসের পক্ষে গোল করেন মেম্ফিস ডিপায়, ডেলি ব্লিন্ড ও ডেনজিল ডামফ্রিস। ৭৬ মিনিটে আমেরিকানদের হয়ে একটি গোল শোধ করেন হাজি রাইট।

প্রথম দল হিসেবে কাতার বিশ্বকাপের কোয়ার্টার ফাইনাল নিশ্চিত করেছে নেদারল্যান্ডস। নকআউটের প্রথম ম্যাচে যুক্তরাষ্ট্রকে ৩-১ গোলে হারিয়েছে ডাচরা।

নেদারল্যান্ডসের পক্ষে গোল করেন মেম্ফিস ডিপায়, ডেলি ব্লিন্ড ও ডেনজিল ডামফ্রিস। ৭৬ মিনিটে আমেরিকানদের হয়ে একটি গোল শোধ করেন হাজি রাইট।

গ্রুপ পর্বের ৩ ম্যাচে মাত্র ৮টি গোলে শট নিয়ে ৫ গোল করে আসা নেদারল্যান্ডস দলটি নিজেদের ফুটবল দিয়ে ভক্তদের মন জয় করতে পারেনি। অনেকেই গ্রুপ পর্বের দলটিকে অতীতের চোখ ধাঁধাঁনো ফুটবল খেলা দলের তুলনায় পানসে ও ধীরগতিরও আখ্যা দেন।

আদতে তারা কেমন ফুটবল খেলতে পারে সেটারই যেন নমুনা ডাচরা রাখল যুক্তরাষ্ট্রের বিপক্ষে। আমেরিকানদের ম্যাচে একরকম কোণঠাসা করে রেখে ম্যাচ জিতে কোয়ার্টার ফাইনালে পৌঁছে গেছে নেদারল্যান্ডস।

শুরুটা করেন ডিপায়। ম্যাচের ১০ মিনিটে ডেনজিল ডামফ্রাইসের কাছ থেকে বল পেয়ে লক্ষ্যভেদ করেন বার্সেলোনার এ ফরোয়ার্ড। তবে, গোলের বিল্ডআপে যেমন ওয়ান-টাচ পাসিং ও দলের প্রায় সব সদস্যের অবদান ছিল তাতে একে টুর্নামেন্টের সেরা টিম গোল বলা যেতে পারে।

প্রথমার্ধ শেষ হওয়ার আগ মুহূর্তে লিড দ্বিগুণ করে নেদারল্যান্ডস। এবারও উৎস ছিলেন ডামফ্রিস। ডান প্রান্ত থেকে তার কাট ব্যাক খুঁজে নেয় ব্লিন্ডকে। যিনি নিঁখুত শটে পরাস্ত করেন আমেরিকান গোলকিপার ম্যাট টার্নারকে।

নেদারল্যান্ডসের টোটাল ফুটবলের কাছে পাত্তা পাচ্ছিল না যুক্তরাষ্ট্র। দ্বিতীয়ার্ধে ম্যাচে ফেরার সুযোগ তৈরি করতে থাকে তারা।

দ্বিতীয়ার্ধের আধাঘণ্টার সময় ক্রিস্টিয়ান পুলিসিক ডান প্রান্ত দিয়ে আক্রমণ করে বল বাড়ান হাজি রাইটের দিকে। ব্যবধান কমাতে ভুল করেননি রাইট।


যুক্তরাষ্ট্রের কামব্যাকের স্বপ্ন ভাঙেন আগের দুই গোলের জোগানদাতা ডামফ্রিস। ব্লিন্ডের বাম প্রান্ত থেকে করা ক্রসে ভলির সুযোগ হাতছাড়া করেননি বক্সের ডানদিকে মার্কারকে ফাঁকি দেয়া ডামফ্রিস।

তার গোলেই স্বপন ভাঙে আমেরিকার। ৩-১ গোলের জয় নিয়ে সবার আগে শেষ আটে পৌঁছায় নেদারল্যান্ডস।

আরও পড়ুন:
চোটে বিশ্বকাপ শেষ জেসুসের
আর্জেন্টিনা-অস্ট্রেলিয়া ম্যাচে পোলিশ রেফারি
বিশ্বকাপে যে ভেন্যুর শেষ ম্যাচে খেলবে আর্জেন্টিনা ও অস্ট্রেলিয়া
ফুটবল মাঠে কী কাজ অধিনায়কের?

মন্তব্য

খেলা
Banglalink Development agreement to enjoy the World Cup in Toffee

টফিতে বিশ্বকাপ উপভোগে বাংলালিংক-বিকাশ চুক্তি

টফিতে বিশ্বকাপ উপভোগে বাংলালিংক-বিকাশ চুক্তি সম্প্রতি বিকাশের প্রধান কার্যালয়ে আবদুল মুকিত আহমেদ ও মাহফুজ সাদিক নিজ নিজ প্রতিষ্ঠানের পক্ষে চুক্তিতে স্বাক্ষর করেন। ছবি: সংগৃহীত
বিকাশের প্রধান কার্যালয়ে টফির ডিজিটাল সার্ভিসেস বিভাগের পরিচালক আবদুল মুকিত আহমেদ এবং বিকাশের চিফ কমিউনিকেশন্স অফিসার মাহফুজ সাদিক নিজ নিজ প্রতিষ্ঠানের পক্ষে চুক্তিতে স্বাক্ষর করেন।

ফুটবলপ্রেমীদের বিশ্বকাপের প্রতিটি খেলা নিরবচ্ছিন্নভাবে সরাসরি দেখার সুযোগ করে দিতে বাংলালিংকের সঙ্গে চুক্তিবদ্ধ হয়েছে বিকাশ।

গ্রাহকরা বাংলালিংকের ওটিটি প্ল্যাটফর্ম ‘টফি’তে বিকাশের মাধ্যমে ডাটা প্যাকেজ কিনে বা রিচার্জ করে সরসারি খেলা উপভোগ করতে পারবেন। বিজ্ঞাপন-মুক্ত খেলা দেখতে প্রিমিয়াম প্যাকেজও সাবস্ক্রাইব করতে পারেন বিকাশ পেমেন্টে।

সম্প্রতি বিকাশের প্রধান কার্যালয়ে টফির ডিজিটাল সার্ভিসেস বিভাগের পরিচালক আবদুল মুকিত আহমেদ এবং বিকাশের চিফ কমিউনিকেশন্স অফিসার মাহফুজ সাদিক নিজ নিজ প্রতিষ্ঠানের পক্ষে চুক্তিতে স্বাক্ষর করেন।

শনিবার এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ কথা জানিয়েছে বিকাশ।

এসময় উপস্থিত ছিলেন বাংলালিংকের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা এরিক অস এবং বিকাশের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা কামাল কাদীরসহ দুই প্রতিষ্ঠানের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দ।

এর ফলে, বিশ্বকাপজুড়ে টফি অ্যাপে প্রবেশ করলেই গ্রাহকেরা প্রতিটি ম্যাচের আগে মোবাইলে ডাটা আছে কিনা সেই নোটিফিকেশন পাবেন। এমনকি, খেলার মাঝে ডাটা ফুরিয়ে গেলে মুহূর্তেই বিকাশে মোবাইল ডাটা রিচার্জ করে নির্বিঘ্নে খেলা দেখতে পারবেন।

বিকাশে পেমেন্টের মাধ্যমে গ্রাহকেরা ৩০ টাকা থেকে শুরু করে ১২০ টাকার ৩ থেকে ৩০ দিন মেয়াদি বিভিন্ন প্রিমিয়াম প্যাকেজ সাবস্ক্রাইব করতে পারেন।

এ প্রসঙ্গে টফির ডিজিটাল সার্ভিসেস বিভাগের পরিচালক আবদুল মুকিত আহমেদ বলেন, ‘টফি ব্যবহারকারীদেরকে বিশ্বকাপের ম্যাচ স্বাচ্ছন্দ্যের সঙ্গে উপভোগের সুযোগ দিতে আমরা বিকাশ-এর সঙ্গে এই যৌথ উদ্যোগ নিয়েছি। এর মাধ্যমে তারা দ্রুত ডাটা কিনে নিরবচ্ছিন্ন লাইভস্ট্রিমিংয়ের অভিজ্ঞতা পাবে। ব্যবহারকারীদের চাহিদা পূরণে আমরা বিভিন্ন ধরনের প্যাকেজ নিয়ে এসেছি।’

বিকাশের চিফ কমিউনিকেশন্স অফিসার মাহফুজ সাদিক বলেন, ‘পরিবার, পাড়া-প্রতিবেশী আর বন্ধুদের সঙ্গে বিশ্বকাপ দেখা বরাবরই আনন্দের। তবে আজকাল কর্মব্যস্ত জীবনে, ছোট পরিবারে ঘরে ফিরে সেভাবে আর টিভির সামনে বসে খেলা দেখা হয়ে ওঠে না। যেকোনো সময়, যেকোনো জায়গা থেকেই মোবাইলে বা অন্য ডিজিটাল ডিভাইসে সরাসরি এবারের বিশ্বকাপ দেখার সুযোগ করে দিয়েছে বাংলালিংকের টফি।’

তিনি বলেন, ‘বিকাশ এই উদ্যোগের সঙ্গে থেকে গ্রাহকদের জন্য তাৎক্ষণিক ডাটা প্যাকেজ কিনে নিরবচ্ছিন্ন খেলা দেখার সুযোগ তৈরি করছে।’

এবার কাতারে অনুষ্ঠিত ফিফা বিশ্বকাপ ২০২২ এর ম্যাচগুলো দেখানোর ডিজিটাল স্ট্রিমিং প্ল্যাটফর্ম হিসেবে একমাত্র স্বত্ব পেয়েছে বাংলালিংকের ওটিটি প্ল্যাটফর্ম ‘টফি’। জনপ্রিয় এই প্ল্যাটফর্মে খেলা ছাড়াও মুভি, নাটক, ওয়েব সিরিজ এবং বিভিন্ন টিভি চ্যানেল লাইভ দেখতে পারেন গ্রাহক।

আরও পড়ুন:
বিশ্বকাপ: টিভিতে ২২ শতাংশ পর্যন্ত ছাড়
আর্জেন্টিনার এক দিন পর বিশ্বকাপ শুরু ব্রাজিলের
মেসির গ্রুপে লেওয়ানডোভস্কি, কঠিন গ্রুপে ব্রাজিল
কাতার বিশ্বকাপের ম্যাসকট লায়িব
বিশ্বকাপের থিম সং ‘হায়্যা হায়্যা’

মন্তব্য

p
উপরে