× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট বাংলা কনভার্টার নামাজের সময়সূচি আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

খেলা
Bangladesh Silver in Archery Compound at Islamic Solidarity Games
google_news print-icon

ইসলামিক সলিডারিটি গেমসে আর্চারি কম্পাউন্ডে বাংলাদেশের রৌপ্য

ইসলামিক-সলিডারিটি-গেমসে-আর্চারি-কম্পাউন্ডে-বাংলাদেশের-রৌপ্য
বাংলাদেশ আর্চারি দল। ফাইল ছবি
কম্পাউন্ড নারী টিম ইভেন্টের ফাইনালে তুরকিয়ের ২২৯-২২২ পয়েন্টে হেরেছে রোকসানা আক্তার, শ্যামলী রায় ও পুষ্পিতা জামানের বাংলাদেশ দল।

তুরস্কের কোনিয়াতে ইসলামিক সলিডারিটি গেমসের পঞ্চম আসরে আর্চারি কম্পাউন্ড নারী টিম ইভেন্টে রৌপ্য জিতেছে বাংলাদেশ। রিকার্ভ টিম ইভেন্টে ব্রোঞ্জ জিতেছে বাংলাদেশের পুরুষ ও নারী দল।

বুধবার অনুষ্ঠিত কম্পাউন্ড নারী টিম ইভেন্টের ফাইনালে তুরকিয়ের ২২৯-২২২ পয়েন্টে হেরেছে রোকসানা আক্তার, শ্যামলী রায় ও পুষ্পিতা জামানের বাংলাদেশ দল।

রিকার্ভ দলগত ইভেন্টের তৃতীয় স্থান নির্ধারণী ম্যাচে সৌদি আরবের বিপক্ষে ৬-০ সেটে জয়লাভ করে মোহাম্মদ হাকিম আহমেদ রুবেল, রোমান সানা ও সাগর ইসলামকে নিয়ে গঠিত বাংলাদেশ দল। এর আগে সেমিফাইনালে তারা হারে ইন্দোনেশিয়ার কাছে।

নারীদের দলগত রিকার্ভের তৃতীয় স্থান নির্ধারণী ম্যাচে উজবেকিস্তানের বিপক্ষে ৬-২ সেটে জয় নিয়ে ব্রোঞ্জ পদক নিশ্চিত করে দিয়া সিদ্দিকী, নাসরিন আক্তার ও বিউটি রায়ের বাংলাদেশ দল।

আরও পড়ুন:
ইসলামিক সলিডারিটি গেমসে রোমান ও দিয়ার হতাশার দিন
র‍্যাঙ্কিং আর্চারির রিকার্ভে সেরা রোমান ও বিউটি
এশিয়ান আর্চারিতে তিন স্বর্ণ হাতছাড়া বাংলাদেশের

মন্তব্য

আরও পড়ুন

খেলা
Messi is disoriented under the pressure of his father and wife

বাবা ও স্ত্রীর দ্বিমুখী চাপে মেসি

বাবা ও স্ত্রীর দ্বিমুখী চাপে মেসি বাবা ও পরিবার নিয়ে সিদ্ধান্তহীনতায় মেসি। ছবি: সংগৃহীত
আল-হিলালের প্রস্তাব কোনোভাবেই হাতছাড়া করতে চান না মেসির বাবা ও এজেন্ট হোর্গে মেসি। অন্যদিকে সৌদি আরবে যেতে চান না তার স্ত্রী ও সন্তানেরা।

পিএসজিতে দুই বছরের অধ্যায় শেষ করে বার্সেলোনাতে ফিরতে চাইলে ফের আশায় বুক বেঁধেছিল বার্সা ও মেসি সমর্থকরা। কিন্তু লা লিগা বার্সেলোনার ভায়াবিলিটি প্ল্যান অনুমোদন দিতে দেরি করা ও সৌদি আরব ও যুক্তরাষ্ট্র থেকে বড় অঙ্কের প্রস্তাব আশায় মেসির কাতালুনিয়ায় ফেরা নিয়ে জেগেছে সংশয়।

মেসিকে দলে ভেড়াতে ৪০০ (সাড়ে চার হাজার কোটি টাকার বেশি) মিলিয়ন ইউরোর বিরাট এক প্রস্তাব দিয়েছে সৌদির ক্লাব আল-হিলাল। ক্যারিয়ারের শেষ সময়ে এমন প্রস্তাব কোনোভাবেই হাতছাড়া করতে চান না মেসির বাবা ও এজেন্ট হোর্গে মেসি। আবার সৌদি আরবে যেতে চাননা মেসির স্ত্রী আন্তোনেলা। তবে বার্সেলোনায় ফেরার ইচ্ছা থাকলেও তাদের কাছ থেকে এখন পর্যন্ত কোনো প্রস্তাব না আসায় দারুণ সিদ্ধান্তহীনতায় ভুগছেন ইতিহাসের অন্যতম সেরা এ ফুটবলার।

মেসির বার্সেলোনায় ফিরে আসার ইচ্ছা ফুটবল-সংশ্লিষ্ট সবারই কমবেশি জানা। বার্সায় ফিরবেন বলে ইতোমধ্যে ছেলেদের পুরনো স্কুলে অগ্রিম সিটও বুক করে রেখেছেন বলে বেশ আগেই স্প্যানিশ সংবাদমাধ্যমে খবর হয়। বার্সেলোনাও চায় মেসিকে ফেরাতে। কিন্তু সমস্যা অন্য জায়গায়।

বাবা ও স্ত্রীর দ্বিমুখী চাপে মেসি
স্ত্রী আন্তোনেলা রোকুজ্জোর সঙ্গে লিওনেল মেসি। ছবি: সংগৃহীত

আগামী মৌসুমের জন্য নতুন খেলোয়াড় কিনতে হলে আয়-ব্যয়ের হিসাব মেলাতে হবে আর্থিক সংকটে ভুগতে থাকা বার্সেলোনাকে। তা না হলে জুনে চুক্তির মেয়াদ শেষ হতে যাওয়া বর্তমান খেলোয়াড়দেরও রেজিষ্ট্রেশন করতে পারবে না ক্লাবটি। নিজেদের হিসাব মিলিয়ে নতুন খেলোয়াড় দলে ভেড়াতে এপ্রিলে একটি ভারসাম্য পরিকল্পনা (ভায়াবিলিটি প্ল্যান) লা লিগা কর্তৃপক্ষকে দেয় হুয়ান লাপোর্তার পরিচালনা পর্ষদ। কিন্তু প্রস্তাবিত পরিকল্পনার বেশকিছু জায়গায় ভারসাম্য না থাকায় প্রথমে সে প্রস্তাব ফিরিয়ে দেয় লিগ কর্তৃপক্ষ। পরে তা সংশোধন করে পাঠালে বিবেচনায় নেয় লিগ কর্তৃপক্ষ।

কিন্তু বার্সেলোনাকে দ্রুত সিদ্ধান্ত জানাতে ও অফিশিয়াল প্রস্তাব পাঠাতে সময় বেঁধে দিয়েছেন হোর্গে মেসি। এ সপ্তাহের মধ্যে বার্সার পক্ষ থেকে সাড়া না পেলে অন্য প্রস্তাবগুলো বিবেচনায় নেবেন তারা।

আসলে মেসিকে আল-হিলালের দেয়া প্রস্তাবে যে সময়সীমা ছিল, তা শেষ হতে চলেছে। এদিকে ডেভিড বেকহ্যামের ইন্টার মায়ামিও মেসির অবস্থা ধৈর্য্যের সঙ্গে পর্যবেক্ষণ করছে। ইন্টার মায়ামির মেসিকে দলে পাওয়ার ইচ্ছাও এখন ‘ওপেন সিক্রেট’। তাই দ্রুত বার্সেলোনার সিদ্ধান্ত জানতে চান মেসির ক্যাম্প।

এদিকে সৌদি আরবে একদমই যাওয়ার ইচ্ছা নেই মেসির স্ত্রী আন্তোনেলার। স্পেনের প্রখ্যাত ক্রিড়া সাংবাদিক জেরার্দ রোমেরো সোমবার এক টুইটে জানিয়েছেন, মেসির স্ত্রী ও সন্তান মাতেও মেসি সৌদিতে যেতে চান না।

এমন অবস্থায় উভয়সংকটে পড়েছেন ফুটবলের বরপুত্র লিওনেল মেসি।

টিওয়াইসি স্পোর্টসের আর্জেন্টিনা বিষয়ক সাংবাদিক গাস্তোন এদুল এক টুইটে জানান, ‘মেসি কেন আর (সিদ্ধান্ত নিতে) দেরি করতে চান না, তা আমি (মেসির ক্যাম্প থেকে) জেনেছি। হুয়ান লাপোর্তার সঙ্গে মেসির ক্যাম্পের আলোচনা শুরু হয় মে মাসের শুরুতে। সে সময় লাপোর্তা জানিয়েছেলেন, ভায়াবিলিটি প্ল্যান নিয়ে লা লিগার সঙ্গে ঝামেলা মে মাসের ১৫ তারিখের মধ্যে মিটে যাবে। কিন্তু সে সময় চলে গিয়ে ৩-৪ সপ্তাহ অতিক্রান্ত হলেও বার্সেলোনার সমস্যা মেটেনি। আবার লা লিগা (ভায়াবিলিটি) প্ল্যানে অনুমতি দিলেও খেলোয়াড় বিক্রি ও অন্যান্য বিষয়ে হিসাব মেলাতে ক্লাবটির আরও সময় প্রয়োজন।

‘মেসির ক্যাম্প আসলে ভয় পাচ্ছে, মেসিকে আদৌ বার্সেলোনা রেজিস্ট্রেশন করতে পারবে কিনা সে বিষয়ে কোনো গ্যারান্টি নেই। বার্সেলোনার জন্য অপেক্ষা করবে কি না, সে বিষয়ে গ্যারান্টি চান মেসি। তিনি কোনোভাবেই ২০২১ সালের ঘটনার পুনরাবৃত্তি চান না।’

গতকাল দুপুরে বার্সেলোনার পরিকল্পনার অনুমোদন দিয়েছে লা লিগা। এরপর ক্লাব সভাপতি হুয়ান লাপোর্তার সঙ্গে বৈঠক করেন হোর্গে মেসি। বৈঠক শেষে তিনি সংবাদিকদের বলেন, ‘আমি অবশ্যই লিওকে বার্সায় ফিরতে দেখতে চাই। কিন্তু বৈঠকে তেমন স্পষ্ট কোনোকিছু আলোচনা হয়নি।’

বৈঠকে মেসির জন্য কোনো অফিশিয়াল প্রস্তাব দিতে পারেননি লাপোর্তা। তবে দুপক্ষই আরও কিছু সময় ধৈর্য ধরতে রাজি হয়েছে।

হোর্গে মেসি বলেন, ‘লিও এখনই যে কোনো একটা সিদ্ধান্তে আসতে চায়। পুরো ঘটনাটি নিয়ে সে ক্লান্ত হয়ে পড়েছে।’

তবে বার্সেলোনা কর্তৃপক্ষের সঙ্গে আরেকদফা বৈঠকে সম্মত হয়েছেন মেসির বাবা। আজ বা কালকের মধ্যেই তা হতে পারে বলে এক টুইটে জানিয়েছেন বার্সেলোনার খবর প্রাপ্তির সবচেয়ে নির্ভরযোগ্য ব্যক্তিত্ব রিশাদ রহমান। তিনি জানিয়েছেন, ওই বৈঠকেই সম্ভবত মেসিকে অফিশিয়াল প্রস্তাব দেয়া হতে পারে।

মেসির দলবদল ঠিক কোন দিকে মোড় নেবে, তা আগামী দুই-একদিনের মধ্যেই জানা যাবে বলে জানিয়েছেন রিশাদ।

আরও পড়ুন:
অনুমতি না নিয়ে সৌদিতে মেসি, বিরক্ত পিএসজি
মেসির বার্সায় ফেরার স্বপ্নে ফের ধাক্কা
মেসিকে বছরে ৪০ কোটি ইউরোর প্রস্তাব আল-হিলালের

মন্তব্য

খেলা
Taskin also returned the countys proposal for the country

কাউন্টির প্রস্তাবও ফেরালেন ‘ব্যতিক্রমী’ তাসকিন

কাউন্টির প্রস্তাবও ফেরালেন ‘ব্যতিক্রমী’ তাসকিন বাংলাদেশি পেসার তাসকিন আহমেদ। ছবি: সংগৃহীত
ইংলিশ কাউন্টি ছাড়াও ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগ (আইপিএল) ও পাকিস্তান সুপার লিগে (পিএসএল) খেলার প্রস্তাব পেয়েছিলেন তাসকিন।

বিদেশি লিগ মানেই টাকার ছড়াছড়ি। ওই ধরনের লিগ খেলতে সবসময়ই মুখিয়ে থাকেন ক্রিকেটাররা। অনেক সময় জাতীয় দলের সিরিজ থেকেও ছুটি নিতে দেখা যায় অনেক তারকা ক্রিকেটারকে। তবে এক্ষেত্রে একেবারেই ব্যতিক্রম তাসকিন আহমেদ।

জাতীয় দলের হয়ে খেলতে বার বার বিদেশি লিগগুলোকে ফিরিয়ে দিয়েছেন তিনি। এবার ইংল্যান্ডের কাউন্টিতে খেলার প্রস্তাবও প্রত্যাখ্যান করেছেন বাংলাদেশের এই পেসার।

সম্প্রতি ইংলিশ কাউন্টির ক্রিকেট দল ইয়র্কশায়ারের হয়ে খেলার প্রস্তাব পেয়েছিলেন তাসকিন। বাংলাদেশের সাবেক পেস বোলিং কোচ ওটিস গিবসন তাকে ওই প্রস্তাব পাঠান।

গিবসন এখন ইয়র্কশায়ারে কোচের দায়িত্ব পালন করছেন। টাইগারদের দায়িত্ব পালনের সময় তাসকিনকে কাছ থেকে দেখেছেন তিনি। তার সাম্প্রতিক ফর্ম সম্পর্কেও তিনি ভালোভাবেই অবগত। তাই কাউন্টিতে তার দলে তিনি তাসকিনকে চেয়েছিলেন।

তবে বিশ্বকাপের আগে চোটের ঝুঁকি এড়াতে সে প্রস্তাব ফিরিয়ে দিয়েছেন তাসকিন। বোর্ডের সঙ্গে পরামর্শ করেই কাউন্টি ক্রিকেটকে না বলে দিয়েছেন তিনি।

চলতি বছর ক্রিকেটের বড় দুটি বড় আসর অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। এশিয়া কাপ নিয়ে শঙ্কা থাকলেও, আগামী অক্টোবরে ভারতের মাটিতে অনুষ্ঠিত হবে ওয়ানডে বিশ্বকাপ। বিশ্বকাপে তাসকিনকেই টাইগারদের পেস বোলিংয়ে নেতৃত্ব দিতে হতে পারে। তাই এ সময় তাকে নিয়ে কোনো ঝুঁকি নিতে চায় না বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)।

এ প্রসঙ্গে বিসিবির অপারেশন্স কমিটির চেয়ারম্যান জালাল ইউনুস ক্রিকবাজকে বলেন, ‘হ্যাঁ, ইয়র্কশায়ার চেয়েছিল তাসকিন যেন তাদের হয়ে খেলে। কিন্তু আমরা তাদের না করে দিয়েছি। কারণ আমরা চাই না বিশ্বকাপের আগে কাউন্টিতে লাল বলের ক্রিকেট খেলে আবার চোটের ঝুঁকিতে পড়ুক। সে মাত্রই (চোট থেকে) ফিরেছে এবং আমাদের টেস্ট স্কোয়াডে আছে। বিশ্বকাপের আগে আমরা তাকে কিভাবে (ফিটনেস অনুযায়ী) চাই সে বিষয়ে আমাদের কিছু পরিকল্পনা আছে।’

চোটের কারণে সবশেষ আয়ারল্যান্ড সফরে খেলতে পারেননি তাসকিন। যদিও চোট কাটিয়ে তিনি অনুশীলনে ফিরেছেন, তবে আফগানিস্তানের বিপক্ষে একমাত্র টেস্টে তাকে না খেলানোর সম্ভাবনাই বেশি।

২০২২ সালেও কাউন্টিতে খেলার প্রস্তাব পেয়েছিলেন তাসকিন। যদিও তখন আনুষ্ঠানিক প্রস্তাব দেয়া হয়নি তাকে।

ইংলিশ কাউন্টি ছাড়াও ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগ (আইপিএল) ও পাকিস্তান সুপার লিগে (পিএসএল) খেলার প্রস্তাব পেয়েছিলেন তাসকিন। ২০২২ মৌসুমে তাকে পেতে চেয়েছিল আইপিএলের দল লক্ষ্ণৌ সুপার জায়ান্টস। তবে তখন সাউথ আফ্রিকা সফর থাকায় সে প্রস্তাবও ফিরিয়ে দেন তিনি।

সবশেষ পিএসএলে তাকে পেতে চেয়েছিল মুলতান সুলতানস। মোহাম্মদ রিজওয়ানের দলের প্রস্তাবও ফিরিয়ে দিয়েছিলেন তাসকিন।

আরও পড়ুন:
কঠিন পরিস্থিতিতে দলের জয়ে খুশি পাপন

মন্তব্য

খেলা
ADC Mishu Biswas at the Ironman World Championship

‘আয়রনম্যান বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপে’ এডিসি মিশু বিশ্বাস

‘আয়রনম্যান বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপে’ এডিসি মিশু বিশ্বাস আয়রনম্যান বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপ-এর এক আয়োজনে এডিসি মিশু বিশ্বাস। ছবি: সংগৃহীত
আয়রনম্যান প্রতিযোগিতায় একজন প্রতিযোগীকে ৩ দশমিক ৮ কিলোমিটার সাঁতার শেষ করে ১৮০ কিলোমিটার সাইকেল চালাতে হয়। এরপর অংশ নিতে হয় ৪২ দশমিক ২ কিলোমিটার ম্যারাথনে। এই তিনটি ডিসিপ্লিনে সর্বমোট ২২৬ দশমিক ৩ কিলোমিটার দূরত্ব বিরতিহীনভাবে কেউ ১৭ ঘণ্টার মধ্যে শেষ করতে পারলে তাকে ‘আয়রনম্যান মেডেল’ দেয়া হয়।

আয়রনম্যান প্রতিযোগিতা একদিনের স্পোর্টিং ইভেন্টগুলোর মধ্যে কঠিনতম হিসেবে বিবেচনা করা হয়। আগামী সেপ্টেম্বরে ফ্রান্সে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে আয়রনম্যান বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপ-২০২৩। এবারের আয়োজনে বাংলাদেশের প্রতিনিধিত্ব করবেন এডিসি মিশু বিশ্বাস।

বছর জুড়ে বিশ্বের ৬০টি দেশে এই প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়। ওই ইভেন্টগুলোতে অ্যাথলেটদের পারফরম্যান্সের ওপর ভিত্তি করে সেরা অ্যাথলেট বাছাই করা হয়। পরে তাদের নিয়ে অনুষ্ঠিত হয় আয়রনম্যান বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপ।

আয়রনম্যান প্রতিযোগিতায় একজন প্রতিযোগীকে ৩ দশমিক ৮ কিলোমিটার সাঁতার শেষ করে ১৮০ কিলোমিটার সাইকেল চালাতে হয়। এরপর আবার অংশ নিতে হয় ৪২ দশমিক ২ কিলোমিটার ম্যারাথনে। এই তিনটি ডিসিপ্লিনে সর্বমোট ২২৬ দশমিক ৩ কিলোমিটার দূরত্ব বিরতিহীনভাবে কেউ ১৭ ঘণ্টার মধ্যে শেষ করতে পারলে তাকে ‘আয়রনম্যান মেডেল’ দেয়া হয়।

‘আয়রনম্যান বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপে’ এডিসি মিশু বিশ্বাস

প্রতিযোগিতায় বাংলাদেশের প্রতিনিধি মিশু বিশ্বাস অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার হিসেবে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) গোয়েন্দা রমনা বিভাগে কর্মরত। তিনি রোববার ব্রাজিলে অনুষ্ঠিত ‘আয়রনম্যান ব্রাজিলে’ বাংলাদেশের একমাত্র প্রতিযোগী হিসেবে অংশগ্রহণ করেন। ওই আয়োজনে তিনি কৃতিত্বের সঙ্গে ২২৬ দশমিক ৩ কিলোমিটার দূরত্ব মাত্র ১২ ঘণ্টা ১১ মিনিটে সম্পন্ন করেন। তিনি ৩ দশমিক ৮ কিলোমিটার সাঁতার শেষ করতে সময় নেন ১ ঘণ্টা ৩৭ মিনিট। ১৮০ দশমিক ২ কিলোমিটার সাইকেল চালনা শেষ করেন ৬ ঘণ্টা ২০ মিনিটে। আর ৪২ দশমিক ২ কিলোমিটার ম্যারাথন শেষ করেছেন মাত্র ৩ ঘণ্টা ৪৯ মিনিটে।

‘আয়রনম্যান বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপে’ এডিসি মিশু বিশ্বাস

মিশু বিশ্বাস এর আগে গত বছর মালয়েশিয়ায় অনুষ্ঠিত ‘আয়রনম্যান মালয়েশিয়া’ ১৩ ঘণ্টা ১৯ মিনিটে এবং তুরস্কে অনুষ্ঠিত ‘আয়রম্যান তুরস্ক’ ৭০ দশমিক ৩ কিলোমিটার সফলভাবে শেষ করেন ৬ ঘণ্টা ৩৫ মিনিটে।

বাংলাদেশ পুলিশের এই কর্মকর্তা ২০২০ সালে প্রথম সিভিল সার্ভেন্ট হিসেবে বাংলা চ্যানেল অতিক্রম করেন। এছাড়াও তিনি বঙ্গবন্ধু ম্যারাথন, সিংগাপুর ও থাইল্যান্ড হাফ ম্যারাথনসহ অর্ধশতাধিক হাফ-ম্যারাথনে অংশগ্রহণ করেছেন৷

মন্তব্য

খেলা
Demand to exclude Spain from hosting the 2030 World Cup

স্পেনকে ২০৩০ বিশ্বকাপ আয়োজন থেকে বাদ দেয়ার দাবি

স্পেনকে ২০৩০ বিশ্বকাপ আয়োজন থেকে বাদ দেয়ার দাবি বর্ণবাদ ইস্যুতে ২১ মে ভ্যালেন্সিয়ার খেলোয়াড়দের সঙ্গে বিবাদে জড়ান ভিনিসিউস। ছবি: সংগৃহীত
পর্তুগাল ও মরক্কোর সঙ্গে যৌথভাবে ২০৩০ সালে অনুষ্ঠিতব্য ফিফা বিশ্বকাপ আয়োজন করতে চায় স্পেন।

বেশ কিছুদিন ধরে বর্ণবাদ ইস্যুতে উত্তপ্ত স্প্যানিশ ফুটবল। তবে সর্বশেষ ২১ মে ভিনিসিউস জুনিয়রের ওপর ভ্যালেন্সিয়ার খেলোয়াড় ও সমর্থকদের তীব্র বর্ণবাদী আচরণের পর নড়েচড়ে বসেছে বিশ্ব ফুটবলের ভক্ত থেকে শুরু করে নীতি নির্ধারক ও সংবাদমাধ্যমগুলো।

বর্ণবাদী আচরণে ‘যথাযথ’ ব্যবস্থা না নেয়ায় পর্তুগাল ও মরক্কোর সঙ্গে যৌথ আয়োজক হতে চাওয়া স্পেনকে ২০৩০ সালের ফিফা বিশ্বকাপের আয়োজকের তালিকা থেকে বাদ দেয়ার পরামর্শ দিয়েছে ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম দ্য টাইমস।

সংবাদমাধ্যমটি বলছে, স্প্যানিশ কর্তৃপক্ষ সমস্যাটি সঠিকভাবে মোকাবেলার জন্য যথাযথ পদক্ষেপ নেয়নি। আর এ বিষয়টিতে ২০৩০ সালের বিশ্বকাপ আয়োজনের জন্য স্পেন কতটা দায়িত্বশীল, ফিফা তা বিবেচনা করতে পারে।

দ্য টাইমসের এক সম্পাদকীয়তে বলা হয়, ‘ইউরোপের অন্য দেশের মতো স্পেন লা লিগা সমর্থকদের শাস্তি দিতে পারে না। তারা কেবল পারে অভিযোগ দায়ের করে বিষয়টি আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে বুঝিয়ে দিতে। তারা বলছে, লিগকে আরও ক্ষমতা প্রদানের জন্য তারা দেশটির সরকারকে আইন পরিবর্তন করতে বলবে।’

‘বিশ্বকাপ আয়োজনে এরপরও স্পেনকে দায়িত্ব দেয়ার কথা ভাবাই যায় না। ভিনিসিউসের মতো একজন তরুণ প্রতিভাকেই তারা যদি নিরাপত্তা দিতে না পারল, তাহলে বিশ্ব ফুটবলকে তারা আসলে কী বার্তা দেয়? ত্রিশ বছর আগে ব্রিটেনের মতো স্পেনকেও বিশ্বকাপ (আয়োজন) থেকে বহিষ্কার করা উচিৎ।’

কয়েক বছর ধরে ফুবলাররা বিভিন্ন সময়ে বর্ণবাদী আচরণের স্বীকার হয়ে আসলেও মাস কয়েক আগে থেকে স্পেনে বিষয়টি ভয়াবহ রূপ নিয়েছে।

প্রতিপক্ষের মাঠে, এমনকি সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমেও বর্ণবাদী আচরণ ও ঘৃণার রোষানলে পড়তে হচ্ছে রিয়াল মাদ্রিদ্রের ব্রাজিলিয়ান স্ট্রাইকার ভিনিসিউস জুনিয়রকে। বারবার এ বিষয়ে প্রতিকার চেয়েও কোনো সুফল পাননি তিনি।

২১ মে ভ্যালেন্সিয়ার মেস্তায়া স্টেডিয়ামে খেলতে গিয়ে ভ্যালেন্সিয়ার সমর্থকদের তীব্র ঘৃণার শিকার হতে হয়েছে তাকে। ম্যাচ চলাকালিন প্রকাশ্যে ভিনিকে লক্ষ্য করে বর্ণবাদী গালিগালাজ করতে থাকেন স্টেডিয়ামের সমর্থকরা। কয়েকবার এ বিষয়ে প্রতিবাদ করেও তিনি নিস্তার পাননি।

ম্যাচশেষের আগমুহূর্তে এ কারণে প্রতিপক্ষের খেলোয়াড়দের সঙ্গে বিবাদে জড়িয়ে লালকার্ডও দেখেন ভিনি।

ম্যাচের পর ইনস্টাগ্রামে নিজের ক্ষোভ প্রকাশ করেন তিনি। এক পোস্টে ভিনিসিউস বলেন, ‘লা লিগায় বর্ণবাদ স্বাভাবিক বিষয়। কর্তৃপক্ষ এটাকে স্বাভাবিক বলেই ভাবে। এমনকি (স্প্যানিশ ফুটবল) ফেডারেশন এটিকে সমর্থন দেয়। আর প্রতিপক্ষরা এতে (বর্ণবাদ) উৎসাহ দেয়।

‘লা লিগা এক সময় রোনালদো, রোনালদিনিয়ো, মেসি ও ক্রিস্তিয়ানোদের থাকলেও বর্তমানে তা বর্ণবাদীদের দখলে।’

ওই পোস্টে তিনি আরও বলেন, ‘যথেষ্ট মনের জোর আছে আমার। বর্ণবাদীদের বিরুদ্ধে সর্বশক্তি দিয়ে আমি লড়াই করে যাব। আমাকে যদি এখান (স্পেন) থেকে বহুদূরেও যেতে হয়, আমি বর্ণবাদ নির্মূলে কাজ করব।’

এক সংবাদ সম্মেলনে রিয়াল মাদ্রিদ কোচ কার্লো আনচেলত্তি বলেন, “মেস্তায়ায় যা হয়েছে তা কোনোভাবেই গ্রহণযোগ্য নয়। যখন স্টেডিয়ামের দর্শকরা একজন খেলোয়াড়কে ‘বানর’ বলতে থাকে, আর কোচের ওই খেলোয়াড়কে মাঠ থেকে উঠিয়ে নিতে বাধ্য হতে হয়, তখন বুঝতে হবে লিগে নিশ্চয়ই সমস্যা আছে।”

এ ঘটনায় ২৩ মে ৭ জনকে গ্রেপ্তার করে স্পেনের পুলিশ।

লা লিগা সভাপতি হাভিয়ের তেবাসও বিষয়টি নিয়ে মুখ খুলেছেন। বৃহস্পতিবার তিনি বলেন, “আমার হাতে যদি ‘পর্যাপ্ত ক্ষমতা’ থাকত, তবে ৬ থেকে ৭ মাসের মধ্যেই লিগ থেকে বর্ণবাদ দূর করতে পারতাম।”

লিগের ক্ষমতা বৃদ্ধির ব্যাপারে জোর দিয়ে তিনি বলেন, ‘পদক্ষেপ নেয়ার ক্ষমতা না থাকায় আমরা শুধু এ বিষয়ে (ফেডারেশনে) অভিযোগই দাখিল করতে পারি।’

আরও পড়ুন:
ফিফা বিশ্বকাপের আয়োজক হতে চায় সৌদি
১০ পয়েন্ট কাটাই গেল ইউভেন্তুসের

মন্তব্য

খেলা
10 points were deducted for Juventus place in the European competition

১০ পয়েন্ট কাটাই গেল ইউভেন্তুসের

১০ পয়েন্ট কাটাই গেল ইউভেন্তুসের আগামী মৌসুমে ইউরোপীয় প্রতিযোগিতায় খেলা নিয়ে অনিশ্চয়তায় পড়ে গেছে ইউভেন্তুস। ছবি: সংগৃহীত
ইতালির লিগ ‘সেরি আ’ থেকে পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষ ৪ দল পরের মৌসুমে চ্যাম্পিয়ন্স লিগ খেলার যোগ্যতা অর্জন করে। পঞ্চম দল ইউরোপা লিগ ও ষষ্ঠ দল উয়েফা কনফারেন্স লিগে প্রতিযোগিতা করার সুযোগ পায়। ৫৯ পয়েন্ট নিয়ে ইউভেন্তুসের অবস্থান এখন সপ্তম।

১৫ পয়েন্ট না হলেও ১০ পয়েন্ট ঠিকই কাটা গেল ইতালিয়ান ক্লাব ইউভেন্তুসের। এর ফলে আগামী মৌসুমে চ্যাম্পিয়ন্স লিগ তো দুরের কথা, ইউরোপা লিগ এমনকি উয়েফা কনফারেন্স লিগে স্থান পাওয়া নিয়েও দেখা দিয়েছে অনিশ্চয়তা।

দলবদলের চুক্তি সম্পর্কিত নানা অনিয়মের অভিযোগে নতুন একটি শুনানির পর সেরি আ’তে চলতি মৌসুমে দলটির ১০ পয়েন্ট কেটে নেয়ার রায় দিয়েছে ইতালির একটি ক্রীড়া আদালত।

সোমবার স্থানীয় সময় রাত পৌনে ৯টায় এমপোলির সঙ্গে খেলা চলছিল ইউভেন্তুসের। ম্যাচটিতে এমপোলির কাছে ৪-১ গোলে হারে মাস্সিমিলিয়ানো আলেগ্রির দল। খেলা শেষ হওয়ার ১০ মিনিট আগে এ রায়ের খবর আসে বলে গোল ডটকমের প্রতিবেদনে বলা হয়।

এ মামলায় ২০২৩ সালের জানুয়ারি মাসে এক রায়ে প্রথমে ১৫ পয়েন্ট কেটে নেয়া হয় ‘তুরিনের বুড়ি’দের; সাথে করা হয় জরিমানা। সে সময় পয়েন্ট টেবিলের দশম অবস্থানে নেমে যায় তারা। তবে এপ্রিলে ইতালির শীর্ষ ক্রীড়া আদালত রায়টি পর্যালোচনা করতে বললে আবারও চ্যাম্পিয়ন্স লিগের স্পট ফিরে পায় তারা। পর্যালোচিত রায়ে জরিমানাও স্থগিত করা হয়। এরপর দারুণ খেলে তারা পয়েন্ট টেবিলের দ্বিতীয় অবস্থানে উঠে আসে।

কিন্তু মৌসুমের শেষ সময়ে ১০ পয়েন্ট কাটা এই শাস্তির ফলে পয়েন্ট টেবিলের সপ্তম অবস্থানে নেমে গিয়েছে ইউভেন্তুস। এতে আগামী মৌসুমে ইউরোপীয় প্রতিযোগিতায় খেলা নিয়ে অনিশ্চয়তায় পড়ে গেছে দলটি।

ইতালির লিগ ‘সেরি আ’ থেকে পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষ ৪ দল পরের মৌসুমে চ্যাম্পিয়ন্স লিগ খেলার যোগ্যতা অর্জন করে। পঞ্চম দল ইউরোপা লিগ ও ষষ্ঠ দল উয়েফা কনফারেন্স লিগে প্রতিযোগিতা করার সুযোগ পায়। ৫৯ পয়েন্ট নিয়ে ইউভেন্তুসের অবস্থান এখন সপ্তম।

তবে এতকিছুর পরও ইউরোপীয় প্রতিযোগিতায় খেলার সম্ভাবনা একেবারে হাতছাড়া হয়ে যায়নি তাদের।

৬৪ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের চতুর্থ অবস্থানে রয়েছে এসি মিলান। ৬১ পয়েন্ট নিয়ে পঞ্চম অবস্থানে আতালান্তা ও ৬০ পয়েন্ট নিয়ে ষষ্ঠ অবস্থানে রোমা। একটু খেয়াল করলে দেখা যায়, চতুর্থ অবস্থানে অর্থাৎ, চ্যাম্পিয়ন্স লিগের শেষ স্পটে থাকা এসি মিলানের চেয়ে ইউভেন্তুসের পয়েন্ট ব্যবধান ৫, আতালান্তা ও রোমার সঙ্গে পয়েন্ট ব্যবধান মাত্র ২ ও ১।

ইউভেন্তুসের হাতে এখনও দুই ম্যাচ রয়েছে যার একটি এসি মিলান ও অপরটি উদিনিসের সঙ্গে। রোববার (২৮ মে) এসি মিলানের সঙ্গে যদি জিততে পারে, তাহলে তাদের সঙ্গে ইউভেন্তুসের ব্যবধান কমে আসবে দুইয়ে। সে সঙ্গে আতালান্তা ও রোমা যদি শেষ দুই ম্যাচে পয়েন্ট হারায়, আর ইউভেন্তুস পরের দুই ম্যাচই জেতে, তাহলে হয়ত ইউরোপা লিগ বা কনফারেন্স লিগে আগামী মৌসুমে দেখা যেতে পারে ‘ওল্ড লেডি’দের।

আরও পড়ুন:
আগামী মৌসুমে কোথায় খেলবেন মেসি?
ডিকশনারিতে নতুন শব্দ ‘পেলে’

মন্তব্য

খেলা
Corruption scandals in the ultimate athletics competition

অ্যাথলেটিকসের চূড়ান্ত প্রতিযোগিতায় দ্বারার দুর্নীতির কলঙ্ক

অ্যাথলেটিকসের চূড়ান্ত প্রতিযোগিতায় দ্বারার দুর্নীতির কলঙ্ক খুলনা বিভাগীয় ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সাম্পাদক এসএম মোর্ত্তজা রশিদী দ্বারা। ছবি: সংগৃহীত
শেখ কামাল আন্তঃস্কুল ও মাদ্রাসা অ্যাথলেটিকস প্রতিযোগিতায় অংশ নেয় সারা দেশের বিশ লক্ষাধিক ছাত্র-ছাত্রী। প্রতিযোগিতার চূড়ান্ত পর্বে ভুয়া প্রতিযোগী পাঠিয়ে পুরো আয়োজনকে বিতর্কিত করেছেন খুলনা বিভাগীয় ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সাম্পাদক এসএম মোর্ত্তজা রশিদী দ্বারা। তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার জন্য খুলনা বিভাগীয় কমিশনারকে অনুরোধ করেছেন প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব ও বাংলাদেশ অ্যাথলেটিকস ফেডারেশন।

বিশ লক্ষাধিক ছাত্র-ছাত্রীর অংশগ্রহণে জানুয়ারিতে শুরু হয়েছিল শেখ কামাল আন্তঃস্কুল ও মাদ্রাসা অ্যাথলেটিকস প্রতিযোগিতা। বাংলাদেশের ইতিহাসে সবচেয়ে বড় এই অ্যাথলেটিকস প্রতিযোগিতার ফাইনাল পর্ব অনুষ্ঠিত হয় ১৩ ও ১৪ মার্চ ঢাকার আর্মি স্টেডিয়ামে।

চূড়ান্ত পর্বে ভুয়া প্রতিযোগী পাঠিয়ে পুরো আয়োজনকে বিতর্কিত করেছেন খুলনা বিভাগীয় ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সাম্পাদক এসএম মোর্ত্তজা রশিদী দ্বারা। তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার জন্য খুলনা বিভাগীয় কমিশনারকে অনুরোধ করেছেন প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব ও বাংলাদেশ অ্যাথলেটিকস ফেডারেশন।

বাংলাদেশ অ্যাথলেটিকস ফেডারেশনের এক প্রতিবেদনে দেখা গেছে, ফাইনাল প্রতিযোগিতায় ১০ জন ভু্য়া অ্যাথলেট অংশ নেয়। তাদের মধ্যে খুলনা বিভাগেরই ছিল ৮ জন। বাকি দু’জন রাজশাহী ও রংপুর বিভাগের।

নিয়ম অনুযায়ী, চূড়ান্ত পর্বে অংশ নেয়ার জন্য এক প্রতিযোগীকে ধারাবাহিকভাবে ইউনিয়ন, উপজেলা, জেলা ও বিভাগীয় পর্যায় থেকে বিজয়ী হতে হয়।

খুলনা বিভাগ থেকে অংশ নিয়ে জাতীয় পর্যায়ে কয়েকজন প্রথম বা দ্বিতীয় স্থান অর্জন করেছিল। তবে ভুয়া অ্যাথলেট হওয়ায় ওইদিন তাদের হাতে পুরস্কার তুলে দেয়া হয়নি। ফলে ৭ কোটি টাকা খরচের পুরো আয়োজনটি ভেস্তে যায়।

১০০ মিটার ‘ক’ ছাত্র গ্রুপে চূড়ান্ত পর্যায়ে প্রথম হয়েছিল মো. রামিম শেখ। খুলনা বিভাগ থেকে তাকে জাতীয় পর্যায়ে পাঠানো হলেও সে পূর্ব বিভাগীয়, জেলা বা উপজেলা পর্যায়ের কোনো অ্যাথলেটিকসে অংশ নেয়নি। নিয়মবর্হিভূতভাবে অংশ নেয়ার কারণে তার পদক বাতিল করা হয়েছে।

১৫০০ মিটার ‘খ’ ছাত্র গ্রুপে চূড়ান্ত পর্যায়ে দ্বিতীয় স্থান অর্জন করেছিল সাখাওয়াত হোসেন। খুলনা বিভাগের হয়ে অংশ নিলেও তার বাড়ি চট্টগ্রাম বিভাগে। সেও পূর্ব বিভাগীয়, জেলা বা উপজেলা পর্যায়ের কোনো অ্যাথলেটিকসে অংশগ্রহণ করেনি। সে কারণে তার পদক বাতিল করা হয়েছে।

এছাড়া খুলনা বিভাগ থেকে গিয়ে ২০০ মিটার ‘ক’ ছাত্র গ্রুপে চূড়ান্ত পর্যায়ে প্রথম ও লং জাম্প ‘ক’ ছাত্র গ্রুপে দ্বিতীয় স্থান অর্জন করেছিল ইফতে আহম্মেদ দীপু। লং জাম্প ‘খ’ ছাত্র গ্রুপে প্রথম স্থান অর্জন করেছিল মনিরুল মোল্যা। তাদেরও একই অভিযোগে পদক বাতিল করা হয়।

এছাড়াও খুলনা বিভাগ থেকে নিয়মবর্হিভূতভাবে রুমা খাতুনকে ৮০০ মিটার ইভেন্টে, নিশিতা কর্মকারকে ৪০০ মিটার ইভেন্টে ও রিলে ইভেন্টে একজনকে বিভাগের বাইরে থেকে অংশ নেয়ার জন্য পাঠানো হয়েছিল।

বাংলাদেশ অ্যাথলেটিকস ফেডারেশনের সাধারণ অ্যাডভোকেট আব্দুর রকিব (মন্টু) লিখিতভাবে এসব অভিযোগ জানিয়েছেন খুলনা বিভাগীয় কমিশনারকে। তাতে বলা হয়েছে, অ্যাথলেটিকসের চূড়ান্ত প্রতিযোগিতায় বিভাগীয় ফলের ভিত্তিতে প্রথম ও দ্বিতীয় স্থান অধিকারীর নাম পাঠানোর কথা ছিল। তবে সাধারণ সম্পাদক এস এম মোর্ত্তজা রশিদী দ্বারা স্বাক্ষরিত চূড়ান্ত এন্ট্রিতে বহিরাগতদের নাম পাওয়া যায়। টিম ম্যানেজার বেনজির আহমেদ ও প্রশিক্ষক মুরাদুন ইসলাম তাদের বিভাগীয়, জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে অংশ নেয়ার প্রত্যয়ন দেখাতে পারেননি। শেখ কামালের নামে আয়োজিত এই অনুষ্ঠান বিনষ্টের পাঁয়তারায় লিপ্ত ছিলেন সংশ্লিষ্টরা।

অ্যাডভোকেট আব্দুর রকিব (মন্টু) বলেন, ‘দেশের প্রতিভাদের উন্মেষণ করার জন্য আমরা যে চেষ্টা করছি তা ধুলিসাৎ করার জন্য কিছু মানুষ উঠেপড়ে লেগেছে। দেশকে পিছিয়ে দেয়ার জন্য তারা উদ্দেশ্যমূলকভাবে এটা করেছে। তারা দুর্নীতি ও প্রতারণার আশ্রয় নিয়েছে।’

আয়োজকরা জানিয়েছেন, দেশের ৫০০টি উপজেলা, ৬৪টি জেলা ও ৮টি বিভাগের মাধ্যমিক বিদ্যালয় ও মাদ্রাসার ২০ লক্ষাধিক শিক্ষার্থীর অংশগ্রহণে ১৪ জানুয়ারি শুরু হয় ‘শেখ কামাল আন্তঃস্কুল ও মাদ্রাসা অ্যাথলেটিকস প্রতিযোগিতা-২০২৩’।

প্রতিটি পর্যায়ে ২৮ জানুয়ারি পর্যন্ত প্রথম ও দ্বিতীয় স্থান অর্জনকারীদের দিয়ে অনুষ্ঠিত হয় ইউনিয়ন ও উপজেলা পর্যায়ের প্রতিযোগিতা। সেখান থেকে সেরাদের নিয়ে ১ থেকে ৫ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত অনুষ্ঠিত হয় জেলা পর্যায়ের খেলা। ৯ থেকে ১৩ ফেব্রুয়ারি অনুষ্ঠিত হয় বিভাগীয় পর্যায়ের প্রতিযোগিতা।

শ্রেণিভিত্তিক দুটি গ্রুপে বিভক্ত হয়ে প্রতিযোগিতায় অংশ নেয় শিক্ষার্থীরা। ষষ্ঠ থেকে অষ্টম শ্রেণীর ছাত্র-ছাত্রীরা ‘ক’ গ্রুপ এবং নবম ও দশম শ্রেণীর ছাত্র-ছাত্রীরা ‘খ’ গ্রুপের হয়ে অংশ নেয় এই প্রতিযোগিতায়।

‘ক’ গ্রুপের ছাত্র-ছাত্রীরা ১০০ ও ২০০ মিটার দৌড়, হাই জাম্প ও লং জাম্পে অংশ নেয়। ‘খ’ গ্রুপের ছাত্র-ছাত্রীরা প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে ১০০, ২০০, ৪০০, ৮০০ ও ১৫০০ মিটার দৌড় এবং হাই জাম্প, লং জাম্প, ট্রিপল জাম্প, বর্শা নিক্ষেপ, শর্টপুট, ডিসকাস থ্রো ও ৪ গুণীতক ১০০ মিটার রিলেতে।

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে খুলনা বিভাগীয় কমিশনার মো. জিল্লুর রহমান চৌধুরী বলেন, ‘একটা অত্যন্ত সেনসিটিভ কাজে প্রতারণা করা হয়েছে। এ বিষয়ে ব্যবস্থা নেয়ার জন্য আমাকে মুখ্য সচিব জানিয়েছেন। কয়েকদিন আগে বিভাগীয় ক্রীড়া সংস্থার সভা হয়। সেখানে সাধারণ সাম্পাদক এসএম মোর্ত্তজা রশিদী দ্বারাকে এ বিষয়ে জিজ্ঞাসা করেছিলাম। তবে তিনি নত হসনি। তিনি বলছেন, বিদেশেও এমন দুর্নীতি করা হয়। তাকে প্রাথমিকভাবে শো-কজ করা হয়েছে। সদুত্তর না পেলে তদন্ত কমিটি গঠন করা হবে। পরবর্তী ব্যবস্থা গ্রহণের ব্যাপারে তদন্ত কমিটি সুপারিশ করবে।’

বিষয়টি নিয়ে এসএম মোর্ত্তজা রশিদী দ্বারার ব্যবহৃত ব্যক্তিগত মোবাইল নম্বরে কল করা হলে তিনি রিসিভ করেন। বিষয়গুলো শুনে তিনি কোনো কথা না বলে কল কেটে দেন। পরবর্তীতে তার নম্বরে আরও কয়েকবার কল করা হলেও তিনি রিসিভ করেননি।

আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত এসএম মোর্ত্তজা রশিদী দ্বারা প্রায় ১০ বছর ধরে বিভাগীয় ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সাম্পাদকের দায়িত্ব পালন করছেন। এর আগে বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি, খুলনা জেলা ছাত্রলীগ সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন তিনি।

মন্তব্য

খেলা
Waiting for Erdoğans future to be determined

এরদোয়ানের ভবিষ্যৎ নির্ধারণের অপেক্ষা

এরদোয়ানের ভবিষ্যৎ নির্ধারণের অপেক্ষা
স্থানীয় সময় রোববার তুরস্কে প্রেসিডেন্ট ও পার্লামেন্ট নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। জনগণ দেশটির আধুনিক ইতিহাসের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ এক নির্বাচনে ভোট দিয়েছেন এদিন।

২০ বছর ধরে ক্ষমতায় থাকা প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়েপ এরদোয়ানের ভবিষ্যৎ কী হবে সেই ঘোষণা আসছে আর কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই।

স্থানীয় সময় রোববার তুরস্কে প্রেসিডেন্ট ও পার্লামেন্ট নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। জনগণ দেশটির আধুনিক ইতিহাসের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ এক নির্বাচনে ভোট দিয়েছেন এদিন।

বিবিসি বলছে, নির্বাচনে এরদোয়ানের প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী কেমাল কুলুচদারুলু নাকি এরদোয়ানাই আবার ক্ষমতায় বসবেন তা নিয়ে চলছে নানা হিসাব-নিকাশ। চলছে ভোট গণনা।

কেমাল প্রেসিডেন্ট হিসেবে এরদোয়ান যে ক্ষমতা কুক্ষিগত করেছেন, তা বাতিল করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন। তিনি এক বৃহত্তর বিরোধী জোটের প্রার্থী এবং তার নির্বাচনে জেতার সত্যিকারের সম্ভাবনা দেখতে পাচ্ছেন অনেকে।

নির্বাচনে জিততে হলে একজন প্রার্থীকে মোট প্রদত্ত ভোটের অন্তত ৫০ শতাংশ পেতে হবে। তা না হলে দুই সপ্তাহের মধ্যে দ্বিতীয় দফা ভোট নেয়া হবে।

তুরস্কের স্থানীয় সময় সকাল আটটায় ভোটগ্রহণ শুরু হওয়ার অনেক আগে থেকেই ভোটকেন্দ্রগুলোর সামনে ভোটাররা লাইন দিতে শুরু করেন।

তুরস্কের ভোটাররা এমন এক সময়ে এই নির্বাচনে ভোট দিলেন যখন তাদের কঠিন অর্থনৈতিক অবস্থার মোকাবিলা করতে হচ্ছে।

দেশটিতে মূল্যস্ফীতি এখন লাগামছাড়া। সরকারি হিসেবেই মূল্যস্ফীতির হার ৪৪ শতাংশ। কিন্তু অনেক মানুষের ধারণা এটি আসলে অনেক বেশি হবে।

অন্যদিকে তুরস্কের ১১ টি প্রদেশ সম্প্রতি দুই দফা ভূমিকম্পের ধাক্কা সামলাতে হিমসিম খাচ্ছে। এই ভূমিকম্পে ৫০ হাজারের বেশি মানুষ মারা গেছে।

আরও পড়ুন:
অগ্নিপরীক্ষায় এরদোয়ান
লাইভে হঠাৎ অসুস্থ: ফের নির্বাচনী প্রচারে এরদোয়ান
তুরস্কে ধ্বংসস্তূপ থেকে উদ্ধার সেই শিশুর মায়ের খোঁজ

মন্তব্য

p
উপরে