× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

খেলা
Bangladesh needs 150 runs for an elusive win
hear-news
player
print-icon

অধরা জয়ের জন্য বাংলাদেশের চাই ১৫০ রান

অধরা-জয়ের-জন্য-বাংলাদেশের-চাই-১৫০-রান
উইন্ডিজের বিপক্ষে মিরাজের উইকেট উদযাপন। ছবি: এএফপি
৪১ ওভারে ৯ উইকেটের খরচায় ১৪৯ রান তুলতে থেমে যায় উইন্ডিজের ইনিংসের চাকা। বাংলাদেশের হয়ে ৪ উইকেট নেন শরিফুল ইসলাম। ৩ উইকেট যায় মেহেদী হাসান মিরাজের ঝুলিতে।

টেস্ট ও টি-টোয়েন্টিতে পরপর দুই সিরিজ হারের পর বাংলাদেশের সামনে শঙ্কা ছিল খালি হাতে ওয়েস্ট ইন্ডিজ থেকে ফেরার। কিন্তু ওয়ানডে সিরিজটা এখনও বাকি। অধরা জয়ের মিশনে রোববার ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে সিরিজের প্রথম ওয়ানডেতে নামে বাংলাদেশ।

সঙ্গে নিয়ে নামে ২০১৮ থেকে ক্যারিবীয়দের বিপক্ষে অপরাজিত থাকার অভিজ্ঞতা। তার জের ধরে সিরিজের প্রথম ওয়ানডেতে জয়ের পথে এক পা দিয়ে রাখল বাংলাদেশ। স্বাগতিকদের মাত্র ১৪৯ রানে আটকে দিয়েছে লাল সবুজের প্রতিনিধিরা।

এবার বাকি কাজটা সারতে হবে ব্যাটারদের। তাহলে বাংলাদেশের পক্ষে সম্ভব হবে পুরো সিরিজের অধরা জয়ের দেখা পাওয়া।

বৃষ্টিতে ম্যাচের দৈর্ঘ্য কমে আসে। দুই দলে সুযোগ পায় ৪১ ওভার করে খেলার।

গায়ানায় বৃষ্টিবিঘ্নিত ম্যাচে টসে জিতে বল করতে নেমে শুরু থেকে উইন্ডিজ ব্যাটারদের ওপর চড়াও হন টাইগার বোলাররা। ইনিংসের দ্বিতীয় ওভারেই শাই হোপকে রানের খাতা খোলার আগে সাজঘরে ফিরিয়ে শুভ সূচনা করেন মুস্তাফিজুর রহমান।

দ্রুত উইকেট পতনের ধাক্কা সামাল দিতে এরপর দেখেশুনে ব্যাটিং শুরু করেন কাইল মায়ার্স ও শামার ব্রুকস। তাদের উইকেট কামড়ে ধরে করা ব্যাটিংয়ে সাময়িক সময়ের জন্য পতন থামে উইন্ডিজের উইকেটের।

ম্যাচের দ্বাদশ ওভারে দলীয় ৩২ রানে ব্রেক থ্রু এনে দেন মেহেদী হাসান মিরাজ। কাইল মায়ার্সকে ১০ রানেই পথ ধরতে বাধ্য করেন সাজঘরের।

ম্যাচের একুশতম ওভারে শরিফুল ইসলামের ব্যাক টু ব্যাক আঘাতে সাজঘরে ফেরেন ব্রেন্ডন কিং ও ব্রুকস। মাঠ ছাড়ার আগে কিংয়ের ব্যাট থেকে আসে ৮ রান ও ব্রুকসের ৩৩।

এরপর শুরু হয় উইন্ডিজ শিবিরে আসা যাওয়ার মিছিল। একে একে সেই মিছিলে শামিল হয়ে মাঠ ছাড়েন রভম্যান পাওয়েল (৯), নিকোলাস পুরান (১৮), আকিল হোসেন (৩), রোমারিও শেফার্ড (১৬) ও গুডাকেশ মোতি (৭)। এতে করে ১১০ রান তুলতে ক্যারিবীয়রা হারায় ৯ উইকেট।

শেষদিকে কিছুটা প্রতিরোধ গড়ে তোলেন অ্যান্ডারসন জোসেফ ও জেইডন সিলস। কিন্তু দলকে বেশিদূর টেনে নিয়ে যেতে পারেননি তারা। ৪১ ওভারে ৯ উইকেটের খরচায় ১৪৯ রান তুলতে থেমে যায় উইন্ডিজের ইনিংসের চাকা।

বাংলাদেশের হয়ে ৪ উইকেট নেন শরিফুল ইসলাম। ৩ উইকেট যায় মেহেদী মিরাজের ঝুলিতে। আর ১টি উইকেট নেন মুস্তাফিজুর রহমান।

আরও পড়ুন:
যখন তখন ছক্কা মারার সামর্থ্য নেই দলে: লিটন
‘ডানহাতি-বাঁহাতি কম্বিনেশনের সিদ্ধান্ত অধিনায়কের’
ক্লিন সুইপ হওয়ার ধারা অব্যাহত রাখল বাংলাদেশ
ক্লিন সুইপ এড়ানোর ম্যাচে ব্যাটিংয়ে বাংলাদেশ
তামিমের ফেরার অপেক্ষায় বিসিবি

মন্তব্য

আরও পড়ুন

খেলা
Clean sweep again after 21 years?

২১ বছর পর আবার ক্লিন সুইপ?

২১ বছর পর আবার ক্লিন সুইপ? আউট হয়ে মাঠ ছাড়ছেন আফিফ হোসেন। ফাইল ছবি
শেষ ম্যাচে ইনজুরির কারণে বিশ্রাম দেয়া হতে পারে শরীফুল ইসলামকে। তার পরিবর্তে একাদশে জায়গা হতে পারে রঙ্গিন পোশাকে অভিষেকের অপেক্ষায় থাকা এবাদত হোসেনের।

জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি সিরিজে হারের পরও নিজেদের ভাগ্যবান ভাবতে পারে বাংলাদেশ। দ্বিতীয় ম্যাচে জয়ের দেখা মেলায় ক্লিন সুইপের হাত থেকে রক্ষা পায় লাল সবুজের প্রতিনিধিরা। তবে শর্টার ফরম্যাটে ক্লিন সুইপের হাত থেকে বাঁচলেও ওয়ানডেতে এসে বাংলাদেশের স্মৃতিতে ভাসছে ২১ বছর আগের এক সিরিজ। ২০০১ সালের পর বাংলাদেশকে ক্লিন সুইপের শঙ্কা জাগিয়েছে জিম্বাবুয়ে।

২১ বছর আগে গড়া সেই রেকর্ডের পুনরাবৃত্তি ঠেকানোর মিশনে বুধবার সিরিজের তৃতীয় ও শেষ ওয়ানডেতে মাঠে নামবে টাইগাররা। বাংলাদেশ সময় দুপুর সোয়া ১টায় মাঠে গড়াবে ম্যাচটি।

ইতোমধ্যেই ২-০ ব্যবধানে সিরিজ হেরেছে বাংলাদেশ। এখন বাংলাদেশের সামনে মিশন ক্লিন সুইপ এড়ানো। সেই মিশনে বুধবার দুই পরিবর্তন আসতে পারে বাংলাদেশের একাদশে। শেষ ম্যাচে খেলার সুযোগ মিলতে পারে নাঈম শেখ ও অভিষেকের অপেক্ষায় থাকা এবাদত হোসেনের।

হারারের স্পোর্টিং উইকেটে বাংলাদেশের ব্যাটিং লাইনআপ ভালো করলেও বোলারদের ধারহীন আক্রমণ প্রতি ম্যাচেই ভোগাচ্ছে বাংলাদেশকে। শুরুতে দ্রুত উইকেট তুলে নিলেও হলেও সময় গড়ানোর সঙ্গে সঙ্গে বোলাররা হারাচ্ছেন তাদের লাইন ও লেংথ। শেষ ম্যাচে তাই বোলিং ইউনিটে বেশি নজর রাখতে হচ্ছে বাংলাদেশকে।

দুর্দান্ত ফর্মে থাকা জিম্বাবুয়ের ব্যাটার সিকান্দার রাজা স্বভাবত দুশ্চিন্তার কারণ তামিম ইকবালের দলের জন্য। সে সঙ্গে রেগিস চাকভাবা, ইনোসেন্ট কাইয়া তাদের দাপুটে পারফরম্যান্সে সহজেই কুপোকাত করার ক্ষমতা রাখছেন বাংলাদেশকে।

সিরিজের দুই ম্যাচে ৪ সেঞ্চুরি পেয়েছে জিম্বাবুয়ে। অপরদিকে বাংলাদেশের পক্ষ থেকে সর্বোচ্চ রানের ইনিংস এসেছে মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের ব্যাট থেকে। সেটি ৮০ রানের। বোলিং ইউনিটের সঙ্গে ব্যাট হাতেও বড় ইনিংস খেলার দিকে নজর দিতে হবে টাইগারদের।

ক্লিন সুইপ এড়াতে ভালো খেলার বিকল্প দেখছেন না টাইগার দলপতি তামিম ইকবাল। সেরা ক্রিকেট খেলে অন্তত একটি জয় বাগিয়ে নেয়ার লক্ষ্য টাইগার দলপতির।

তামিম বলেন, ‘আমাদের ঘুরে দাঁড়াতে হবে। আমরা আমাদের সেরা ক্রিকেট খেলিনি এবং সে কারণেই আমরা এই অবস্থানে আছি। অন্তত একটা ম্যাচ জিততে হলে পরের ম্যাচে আমাদের সেরা খেলাটা খেলতে হবে। আশা করি আমরা আমাদের সেরা ক্রিকেট খেলতে পারবো।’

শেষ ম্যাচে ইনজুরির কারণে বিশ্রাম দেয়া হতে পারে শরীফুল ইসলামকে। তার পরিবর্তে একাদশে জায়গা হতে পারে রঙ্গিন পোশাকে অভিষেকের অপেক্ষায় থাকা এবাদত হোসেনের।

এদিকে সিরিজের শেষ ম্যাচেও টসে জিতে বোলিং নেয়া দল জয়ের দিকে এগিয়ে থাকবে বেশ কিছুটা। হারারের উইকেট এখন পর্যন্ত সেই বার্তাই দিচ্ছে।

বাংলাদেশ সম্ভাব্য একাদশ: তামিম ইকবাল (অধিনায়ক), এনামুল বিজয়/মোহাম্মদ নাঈম শেখ, নাজমুল হোসেন শান্ত, মুশফিকুর রহিম (উইকেটকিপার), মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ, মেহেদী হাসান মিরাজ, আফিফ হোসেন, হাসান মাহমুদ, তাসকিন আহমেদ, তাইজুল ইসলাম ও এবাদত হোসেন।

জিম্বাবুয়ে সম্ভাব্য একাদশ: রেগিস চাকাভবা (অধিনায়ক ও উইকেটকিপার), ইনোসেন্ট কাইয়া, ওয়েসলি মাধেভেরে, সিকান্দার রাজা, ব্র্যাড ইভানস, টানাকা চিভাঙ্গা, টনি মুনিয়োঙা, টাকুডজানাওয়াশে কাইটানো, লুক জঙ্গওয়ে, ভিক্টর নিয়াউচি ও টাডিওয়ানাশে মারুমানি।

আরও পড়ুন:
দেশের উইকেটে অনেক ভুল আড়ালে থেকে যায়: ডমিঙ্গো
ইনিংস বড় করতে না পারাটাই পার্থক্য গড়ে দিয়েছে, বললেন তামিম
জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজও খোয়ানোর লজ্জা
বাংলাদেশের সামনে আবারও রাজার চ্যালেঞ্জ
৩ উইকেট তুলে দারুণ শুরু বাংলাদেশের

মন্তব্য

খেলা
BCB is not alarmed by the procession of injuries

ইনজুরির মিছিলে শঙ্কিত নয় বিসিবি

ইনজুরির মিছিলে শঙ্কিত নয় বিসিবি আঘাত পেয়ে স্ট্রেচারে করে মাঠ ছাড়ছেন পেইসার শরিফুল। ছবি: এএফপি
জিম্বাবুয়ে সিরিজের শুরুতে নুরুল হাসান সোহান ও মাঝপথে লিটন দাস ইনজুরির কারণে অনেকটাই অনিশ্চিত এশিয়া কাপে। ইনজুরির সমস্যা রয়েছে মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন ও ইয়াসির আলি রাব্বিরও। এদিকে মুস্তাফিজুর রহমান, মুশফিকুর রহিম, শরিফুল ইসলামকেও পড়তে হয়েছিল ইনজুরির কবলে।

এশিয়া কাপ ও বিশ্বকাপের সময় বেশি বাকি নেই। কিন্তু গুরুত্বপূর্ণ এই দুটি টুর্নামেন্টের আগ মুহূর্তে জাতীয় দলের গলার কাঁটা হয়ে আছে খেলোয়াড়দের ইনজুরি। এতে জর্জরিত গোটা বাংলাদেশ শিবির।

জিম্বাবুয়ে সিরিজের শুরুতে নুরুল হাসান সোহান ও মাঝপথে লিটন দাস ইনজুরির কারণে অনেকটাই অনিশ্চিত এশিয়া কাপে। ইনজুরির সমস্যা রয়েছে মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন ও ইয়াসির আলি রাব্বির। এদিকে মুস্তাফিজুর রহমান, মুশফিকুর রহিম, শরিফুল ইসলামকেও পড়তে হয়েছিল ইনজুরির কবলে।

হুট করেই কেন টানা এমন ইনজুরি? স্বভাবতই উত্তর আসে যে টানা ব্যস্ত সূচির কারণে লম্বা সময় ধরে খেলায় ক্রিকেটারদের পড়তে হচ্ছে এই ইনজুরিতে। একইসঙ্গে চোঁটের মিছিলে ক্রিকেটারদের যোগ দেয়ার বিষয়টি চিন্তার ভাঁজ ফেলেছে সবার কপালে।

ইনজুরির মিছিলে শঙ্কিত নয় বিসিবি
ইনজুরির পর স্ট্রেচারে করে মাঠ ছাড়ছেন লিটন। ছবি: এএফপি

সবাই চিন্তিত হলেও বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের মেডিক্যাল ইউনিট চিন্তিত নন ইনজুরির মিছিল নিয়ে। তাদের মতে টানা খেলার সঙ্গে খেলোয়াড়দের সাম্প্রতিক ইনজুরির কোন সম্পর্ক নেই।

একই সঙ্গে বোর্ডের দাবি ক্রিকেটারদের ব্যস্ত সূচি কোনো প্রভাব বিস্তার করছে না ইনজুরিতে।

বিসিবির প্রধান চিকিৎসক দেবাশীষ চৌধুরী এমনটাই দাবি করেছেন। টানা খেলায় পেইস বোলারদের ইনজুরির শঙ্কা থাকলেও সেই বিষয়ে ইতোমধ্যেই পদক্ষেপ নিয়েছে বোর্ড বলেও জানান তিনি।

নিজবাংলাকে দেবাশীষ বলেন, ‘ইনজুরিটা দু রকমের। একটা হল আঘাতপ্রাপ্ত ইনজুরি। ফ্র্যাকচার হয়েছে, রান বা ফিল্ডিং করতে গিয়ে মাসল পুল হয়েছে। সেটার সঙ্গে টানা খেলার কোনো সম্পর্ক নেই। আরেকটা হল ওভার ইউজড ইনজুরি। সেটা বারবার খেলার জন্য হয়। সাম্প্রতিক সময়ে যেগুলো হয়েছে সেগুলো সবই আঘাতজনিত ইনজুরি। ওভার ইউজড নয়।’

ইনজুরির মিছিলে শঙ্কিত নয় বিসিবি
চোট পেয়ে মাঠ ছাড়ছেন শরিফুল। ছবি: এএফপি

তিনি আরও বলেন, ‘পেইস বোলারদের কিছু সমস্যা হতে পারে। ব্যাটার ও স্পিনারদের তেমন কোনো সম্ভাবনা নেই। এখন পেইস বোলারদের বোলিং ওভারলোড ম্যানেজমেন্ট করা হচ্ছে। সেটার ফলে ওভার ইউজড ইনজুরির সম্ভাবনা কমে আসবে।’

একের পর এক ক্রিকেটার যোগ দিচ্ছেন ইনজুরির মিছিলে। কিন্তু আসন্ন এশিয়া কাপ ও বিশ্বকাপকে কেন্দ্র করে ইনজুরির লম্বা মিছিল আর লম্বা হবে না বলে মনে করছেন বোর্ডের এই চিকিৎসক।

দেবাশীষ বলেন, ‘সামনে আমাদের বেশিরভাগই শর্টার ভার্শনের খেলা। এখানে টানা বোলিং করতে হয় না, বা টানা ব্যাটিংও করা লাগে না। যে কারণে এ ধরণের ইনজুরির সম্ভাবনা বেশ কম। টানা খেলা হলেও সম্ভাবনা কম কারণ খেলার মাঝখানে যেই গ্যাপ থাকে তাতে খেলোয়াড়দের রিকোভারি হয়ে যায়।’

তিনি আরও বলেন, ‘এশিয়া কাপও হচ্ছে শর্টার ভার্শনে, বিশ্বকাপও শর্টার ভার্শনে। সবই কিন্তু শর্টার ভার্শনের খেলা। এগুলোতে আসলে থিওরিটিক্যালি বললে ওভার ইউজড ইনজুরির সম্ভাবনা নেই।’

আরও পড়ুন:
ইনিংস বড় করতে না পারাটাই পার্থক্য গড়ে দিয়েছে, বললেন তামিম
জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজও খোয়ানোর লজ্জা
বাংলাদেশের সামনে আবারও রাজার চ্যালেঞ্জ
৩ উইকেট তুলে দারুণ শুরু বাংলাদেশের
মাহমুদউল্লাহর ব্যাটে বাংলাদেশের বোর্ডে ২৯০

মন্তব্য

খেলা
Gone is Rudy Koertzen

চলে গেলেন আম্পায়ার রুডি কোয়ের্টজেন

চলে গেলেন আম্পায়ার রুডি কোয়ের্টজেন আম্পায়ার রুডি কোয়ের্টজেন।
কেপটাউন থেকে ইস্টার্ন কেপে যাওয়ার পথে ঘটে এই দুর্ঘটনা। পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে দেখা করতে যাচ্ছিলেন তিনি। কোয়ের্টজেনের মৃত্যুর সংবাদ নিশ্চিত করেন তার ছেলে রুডি কোয়ের্টজেন জুনিয়র।

আইসিসির এলিট প্যানেলের সাউথ আফ্রিকান আম্পায়ার রুডি কোয়ের্টজেন আর নেই। সড়ক দুর্ঘটনায় ৭৩ বছর বয়সে নিহত হন প্রোটিয়া এই আম্পায়ার।

মঙ্গলবার কেপটাউন থেকে ইস্টার্ন কেপে যাওয়ার পথে ঘটে এই দুর্ঘটনা। পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে দেখা করতে যাচ্ছিলেন তিনি।
কোয়ের্টজেনের মৃত্যুর সংবাদ নিশ্চিত করেন তার ছেলে রুডি কোয়ের্টজেন জুনিয়র।

স্থানীয় সংবাদমাধ্যম অ্যাগোলা নিউজকে তিনি বলেন, ‘তিনি (রুডি) বন্ধুদের সঙ্গে একটি গলফ টুর্নামেন্টে অংশ নিতে গিয়েছিলেন। সোমবার তার ফিরে আসার কথা ছিল। কিন্তু তিনি সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন আরেক রাউন্ড খেলে ফিরবেন। তবে ফেরা আর হল না।’

কোয়ার্টজেনের মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করেছেন আইসিসির এলিট প্যানেলের আম্পায়ার আলিম দার।

তিনি বলেন, ‘সাউথ আফ্রিকার ক্রিকেট ও তার পরিবারের জন্য এটি বড় ক্ষতি। আমি তার সাথে বেশ কয়েকটি ম্যাচে আম্পায়ারিং করেছি। শুধু আম্পায়ার হিসেবেই নয়, সহকর্মী হিসেবেও তিনি ছিলেন অসাধারণ।’

প্রোটিয়া আম্পায়ার মারিসাস ইরোসমাস শোক প্রকাশ করে বলেন, ‘রুডি সাউথ আফ্রিকানদের আম্পায়ারদের আন্তর্জাতিক পর্যায়ে নিয়ে গিয়েছেন। তিনি সত্যিকারপক্ষে একজন কিংবদন্তি। আমরা তার কাছ থেকে অনেক কিছু শিখেছি।’

আন্তর্জাতিক আম্পায়ার হিসেবে রুডির অভিষেক হয়েছিল ৪৩ বছর বয়সে ১৯৯২-৯৩ মৌসুমে ভারত-সাউথ আফ্রিকা সিরিজের দ্বিতীয় ওয়ানডেতে। ১৯৯৯ সালে ওয়েস্ট ইন্ডিজ ও ভারতের একটি ম্যাচ পাতানোর প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করে তিনি প্রশংসিত হয়েছিলেন।

২০০৭ বিশ্বকাপের পর আইসিসির এলিট আম্পায়ার হিসেবে তিনি জায়গা করে নেন।

২০১০ সালে আন্তর্জাতিক আম্পায়ারিং থেকে অবসর নিলেও ঘরোয়া ক্রিকেটে আম্পায়ারিংয়ের সঙ্গে যুক্ত ছিলেন তিনি। তিনি ‘মেমোরিজ অফ ক্রিকেট আম্পায়ার (উইথ চার্লস শুম্যান) নামে একটি বই লিখেছিলেন।

২০১১ সালের আইপিএলে রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালুরু ও চেন্নাই সুপার কিংসের মধ্যকার ম্যাচে শেষবার আম্পারারিং করেন তিনি।

আরও পড়ুন:
প্রোটিয়া লিগের ফ্র্যাঞ্চাইজি কিনে নিল আইপিএলের ৬ দল
ডোপিংয়ে নিষিদ্ধ প্রোটিয়া ব্যাটার
ডু প্লেসিকে রেখেই বিশ্বকাপে যাচ্ছে সাউথ আফ্রিকা

মন্তব্য

খেলা
Tamim Mushfique will have to pay ICC fine

আইসিসির জরিমানা গুনতে হচ্ছে তামিম-মুশফিকদের

আইসিসির জরিমানা গুনতে হচ্ছে তামিম-মুশফিকদের ফাইল ছবি
সিরিজের দ্বিতীয় ওয়ানডেতে স্লো ওভার রেটে জরিমানা গুনতে হচ্ছে বাংলাদেশের খেলোয়াড়দের। নির্ধারিত সময়ে দুই ওভার কম করায় ম্যাচ ফির ৪০ শতাংশ জরিমানা করা হয়েছে জাতীয় দলের ক্রিকেটারদের।

জিম্বাবুয়ে সফরে সময়টা ভালো যাচ্ছে না বাংলাদেশ জাতীয় দলের। দুই ফরম্যাটে বাজেভাবে সিরিজ হারতে হয়েছে লাল সবুজের প্রতিনিধিদের। এর সঙ্গে যোগ হলো আইসিসির জরিমানা।

সিরিজের দ্বিতীয় ওয়ানডেতে স্লো ওভার রেটে জরিমানা গুনতে হচ্ছে বাংলাদেশের খেলোয়াড়দের। নির্ধারিত সময়ে দুই ওভার কম করায় ম্যাচ ফির ৪০ শতাংশ জরিমানা করা হয়েছে জাতীয় দলের ক্রিকেটারদের।

মঙ্গলবার এক বিবৃতিতে বিষয়টি নিশ্চিত করেছে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিল (আইসিসি)।

বিবৃতিতে বলা হয়, সিরিজের দ্বিতীয় ওয়ানডেতে নির্ধারিত সময়ে দুই ওভার কম বল করার অপরাধে বাংলাদেশ ভেঙেছে আইসিসির কোড অফ কন্ডাক্টের ধারা ২.২২। এটি শাস্তিযোগ্য অপরাধ।’

সেখানে আরও বলা হয়, ‘মন্থর ওভার রেটের ক্ষেত্রে প্রতি ওভারের জন্য খেলোয়াড়দের ম্যাচ ফির অন্তত ২০ শতাংশ জরিমানা করার বিধান রয়েছে। সেই মোতাবেক ম্যাচ ফির ৪০ শতাংশ জরিমানা ধরা হয়েছে।’

বাংলাদেশ অধিনায়ক তামিম ইকবাল এ দায় স্বীকার করে নিয়েছেন। সে কারণে আনুষ্ঠানিক কোনো শুনানির প্রয়োজন পড়েনি।

আরও পড়ুন:
জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজও খোয়ানোর লজ্জা
বাংলাদেশের সামনে আবারও রাজার চ্যালেঞ্জ
৩ উইকেট তুলে দারুণ শুরু বাংলাদেশের
মাহমুদউল্লাহর ব্যাটে বাংলাদেশের বোর্ডে ২৯০
মুশফিক-শান্তর বিদায়ে ব্যাকফুটে বাংলাদেশ

মন্তব্য

খেলা
Bumrah left out of Indias Asia team announcement

এশিয়া কাপের দল ঘোষণা ভারতের

এশিয়া কাপের দল ঘোষণা ভারতের ভারত জাতীয় দলের ক্রিকেটাররা। ফাইল ছবি
প্রায় তিন বছরে ধরে ফর্মে না থাকা বিরাট কোহলিকে বিশ্রাম দেয়া হয়েছিল ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফর থেকে। এশিয়া কাপের মধ্য দিয়ে তিনি আবারও যুক্ত হচ্ছেন ভারতের জাতীয় দলে। কুচকির চোটের কারণে বাইরে থাকা কেএল রাহুলও ফিরছেন এশিয়া কাপে।

সংযুক্ত আরব আমিরাতে (ইউএই) অনুষ্ঠেয় এশিয়া কাপের জন্য দল ঘোষণা করেছে ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড (বিসিসিআই)। চোটের কারণে জাসপ্রিত বুমরাহ ছিটকে গেলেও দলে ফিরেছেন বিরাট কোহলি ও কেএল রাহুল।

বিসিসিআই সোমবার এ টুর্নামেন্টের জন্য ১৫ সদস্যের দল ঘোষণা করে। টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপেও একই দল রাখার চিন্তা করছে বিসিসিআই।

প্রায় তিন বছরে ধরে ফর্মে না থাকা বিরাট কোহলিকে বিশ্রাম দেয়া হয়েছিল ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফর থেকে। এশিয়া কাপের মধ্য দিয়ে তিনি আবারও যুক্ত হচ্ছেন ভারতের জাতীয় দলে। কুচকির চোটের কারণে বাইরে থাকা কেএল রাহুলও ফিরছেন এশিয়া কাপে।

ভারতের নির্বাচক কমিটি সঞ্জু স্যামসনের ও দীপক হুদার পরিবর্তে মিডল অর্ডারে যুক্ত করেছেন শ্রেয়াস আইয়ারকে, তবে তিন খেলোয়াড়কে রাখা হয়েছে স্ট্যান্ডবাই হিসেবে। এ তিনজনের মধ্যে রয়েছেন শেয়াস আইয়ার। এ ছাড়া আক্সার প্যাটেল ও দীপক চাহার রয়েছেন স্ট্যান্ডবাইয়ের তালিকায়।

বুমরা ও হার্শালের চোটজনিত অনুপস্থিতিতে ভারত দলে আছেন তিন স্বীকৃত পেসার ভুবনেশ্বর কুমার, আর্শদীপ সিং ও আবেশ খান। তাদের সঙ্গে আছেন পেস বোলিং অলরাউন্ডার হার্দিক পান্ডিয়া।

এশিয়া কাপে ভারতের স্কোয়াড

রোহিত শর্মা (অধিনায়ক), কেএল রাহুল, বিরাট কোহলি, সুরিয়াকুমার ইয়াদভ, রিশভ পান্ট, দিনেশ কার্তিক, হার্দিক পান্ডিয়া, রবীন্দ্র জাদেজা, রবিচন্দ্রন অশ্বিন, ভুবনেশ্বর কুমার, আরশদীপ সিং, রবি বিষ্ণোই, আভেশ খান, দীপক হুডা ও ইউজবেন্দ্র চাহাল।

আরও পড়ুন:
বোরোলিন নিয়ে চলি: কুনাল ঘোষ
ভারতের সঙ্গে সম্পর্ক রক্তের, প্রভাব পড়বে না: তথ্যমন্ত্রী
স্পিনারদের রেকর্ডে ভারতের দাপুটে জয়

মন্তব্য

খেলা
BCB is looking for an offensive coach on the field

মাঠে আক্রমণাত্মক কোচ চায় বিসিবি

মাঠে আক্রমণাত্মক কোচ চায় বিসিবি সাকিব আল হাসান ও খালেদ মাহমুদের সঙ্গে আলোচনায় টাইগারদের হেড কোচ রাসেল ডমিঙ্গো। ছবি: এএফপি
জিম্বাবুয়ে সফর শেষে কোচদের দেশে ফিরে যাওয়ার কথা ছিল। নিজ দেশ থেকে এশিয়া কাপের ভেন্যুতে সরাসরি দলের সঙ্গে যোগ দেয়া পরিকল্পনা ছিল তাদের। কিন্তু জিম্বাবুয়ে সফর শেষে ও এশিয়া কাপের আগে বিসিবি কোচ ও সাপোর্ট স্টাফের সঙ্গে বসতে চায়।

জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি ও ওয়ানডে সিরিজ হারের পর নড়েচড়ে বসেছে বিসিবি। দেশের নিয়ন্ত্রক সংস্থা জিম্বাবুয়ে সফর শেষে হেড কোচ ও সাপোর্ট স্টাফের সঙ্গে আলোচনায় বসবে বলে নিশ্চিত করেছেন বোর্ডের অপারেশনস প্রধান জালাল ইউনূস।

সোমবার সাংবাদিকদের ইউনূস বলেন বিসিবি হাথুরুসিংহের মতো আক্রমণাত্মক কোচ চাইছে। বর্তমান কোচ রাসেল ডমিঙ্গো দক্ষ কোচ হলেও তার মধ্যে আরও আগ্রাসীভাব দেখতে চায় বোর্ড।

ইউনুস বলেন, ‘তাদের কোচিংয়ের ধরণ আলাদা। কেউ কিছুটা আক্রমণাত্মক। কেউ আবার আক্রমণাত্মক হয় না। হাথুরুসিংহের কোচিং ছিল আক্রমণাত্মক। যেটা আমাদের দরকার।আমাদের যে সাপোর্ট স্টাফ, প্রধান কোচ, ব্যাটিং কোচ- তারা খুবই জ্ঞানী কোচ কিন্তু তেমন আক্রমণাত্মক না, যেটা আমরা চাই।’

জিম্বাবুয়ে সফর শেষে কোচদের দেশে ফিরে যাওয়ার কথা ছিল। নিজ দেশ থেকে এশিয়া কাপের ভেন্যুতে সরাসরি দলের সঙ্গে যোগ দেয়া পরিকল্পনা ছিল তাদের। কিন্তু জিম্বাবুয়ে সফর শেষে ও এশিয়া কাপের আগে বিসিবি কোচ ও সাপোর্ট স্টাফের সঙ্গে বসতে চায়।

একই সঙ্গে এশিয়া কাপের দলও গুছিয়ে ফেলেছে বিসিবি। অধিনায়ক চূড়ান্ত করে ফেলেছে বোর্ড। এ সপ্তাহের মধ্যেই ঘোষণা করা হবে দল।

ইউনূস বলেন, ‘একজনকে অধিনায়ক ধরেই এশিয়া কাপের পরিকল্পনা চলছে। ১-২ দিনের মধ্যেই অধিনায়কের নাম জেনে যাবেন। আমরা ইঞ্জুরির তালিকাটা দেখব। এরপর একসঙ্গে ঘোষণা করা হবে।

‘আমরা এশিয়া কাপে এমন একটা দল চাচ্ছি যেটা দিয়ে বিশ্বকাপের আগ পর্যন্ত চালিয়ে নেয়া যাবে। যে কারণে কিছুটা সময় নিচ্ছি।’

আরও পড়ুন:
চুক্তি থেকে সরে আসতে সাকিবের সঙ্গে বিসিবির আলোচনা
আঙুলের অস্ত্রোপচারের জন্য সিঙ্গাপুরে সোহান
দেশের উইকেটে অনেক ভুল আড়ালে থেকে যায়: ডমিঙ্গো

মন্তব্য

খেলা
BCB talks with Shakib to withdraw from the contract

চুক্তি থেকে সরে আসতে সাকিবের সঙ্গে বিসিবির আলোচনা

চুক্তি থেকে সরে আসতে সাকিবের সঙ্গে বিসিবির আলোচনা বেটউইনার নিউজের পোস্টারে সাকিব আল হাসান। ছবি: টুইটার
বেটউইনার নিউজ তাদের ওয়েবসাইটে জানিয়েছে যে, তারা শুধু একটি অনলাইন নিউজ পোর্টাল। বেটিংয়ের সঙ্গে তাদের কোনো সম্পর্ক নেই। তারপরও বিসিবি সাকিবের সঙ্গে এ ইস্যুতে কথা বলেছে বলে জানান ক্রিকেট অপারেশনসের প্রধান জালাল ইউনূস।

বিতর্কিত প্রতিষ্ঠানে সঙ্গে সাকিব আল হাসানের চুক্তি বিষয়ে তার সঙ্গে আলোচনা করেছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। বোর্ডের আশাবাদ দ্রুত একটা সমাধান আসবে এ ইস্যুতে।

২ আগস্ট সাকিব নিজের সোশ্যাল মিডিয়ায় ঘোষণা দেন বেটউইনার নিউজ নামের একটি প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে চুক্তিবদ্ধ হয়েছেন তিনি। এর পর থেকে শুরু হয় বিতর্ক, সাকিব বেটিং কোম্পানির সঙ্গে চুক্তি করেছেন; বিসিবির নীতিমালায় যা অবৈধ।

বেটউইনার নিউজ তাদের ওয়েবসাইটে জানিয়েছে যে তারা শুধু একটি অনলাইন নিউজ পোর্টাল। বেটিংয়ের সঙ্গে তাদের কোনো সম্পর্ক নেই। তারপরও বিসিবি সাকিবের সঙ্গে এ ইস্যুতে কথা বলেছে বলে জানান ক্রিকেট অপারেশনসের প্রধান জালাল ইউনূস।

সংবাদমাধ্যমকে তিনি সোমবার বলেন, ‘এ ইস্যুতে আমরা তার সঙ্গে যোগাযোগে আছি। বিষয়টা আমাদের সমাধান করা দরকার। সমস্যা সমাধানের জন্য আমরা তার সঙ্গে আলাপ করছি। আশা করি দুই-এক দিনের মধ্যে আপনারা জানতে পারবেন।’

বেটিং বা ফিক্সিং বিষয়ে বিসিবির জিরো টলারেন্স নীতির উল্লেখ করে জালাল যোগ করেন, ‘সাকিবের এ ধরনের কোনো একটা কোম্পানির সঙ্গে চুক্তি হয়েছে। আমরা তাকে জানিয়েছি। সাকিব জানে ব্যাপারটা। এটা যত দ্রুত সম্ভব সমাধান করার চেষ্টা করছি।’

আরও পড়ুন:
আঙুলের অস্ত্রোপচারের জন্য সিঙ্গাপুরে সোহান
দেশের উইকেটে অনেক ভুল আড়ালে থেকে যায়: ডমিঙ্গো
ইনিংস বড় করতে না পারাটাই পার্থক্য গড়ে দিয়েছে, বললেন তামিম

মন্তব্য

p
উপরে