× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

খেলা
Pakistan is getting stronger like Australia Tait
hear-news
player
google_news print-icon

অস্ট্রেলিয়ার মতো শক্তিশালী হচ্ছে পাকিস্তান: টেইট

অস্ট্রেলিয়ার-মতো-শক্তিশালী-হচ্ছে-পাকিস্তান-টেইট
পাকিস্তান জাতীয় দলের বোলিং কোচ শন টেইট। ছবি: সংগৃহীত
দলে ব্যাটিং ও বোলিং ভারসাম্যের কারণে পাকিস্তান এখন যে কোনো কন্ডিশনে ভালো খেলতে সক্ষম বলে মনে করছেন টেইট।

অস্ট্রেলিয়ার ২০০৭ বিশ্বকাপ জয়ী ফাস্ট বোলার শন টেইট গত ফেব্রুয়ারিতে দায়িত্ব নেন পাকিস্তান জাতীয় দলের বোলিং কোচের। গত ৫ মাস পাকিস্তান ক্রিকেটকে পর্যবেক্ষন করে তার মনে হয়েছে, বাবর আজমের দল সব কন্ডিশনে অস্ট্রেলিয়া দলের মতো।

চলতি মাসে শ্রীলঙ্কা সফরের আগে মঙ্গলবার ভারতীয় এক সাইটকে দেয়া সাক্ষাৎকারে তিনি এ মন্তব্য করেন।

টেইট বলেন, ‘যে কোনো পরিস্থিতিতে খেলতে পারে এমন একটি দল প্রস্তুত করতে পারলে অবশ্যই সফল হওয়া সম্ভব। পাকিস্তান দলে বর্তমানে এক ঝাঁক খেলোয়াড় আছে যারা যে কোনো পরিস্থিতিতে দুর্দান্ত স্পিন ও ফাস্ট বোলিং করতে সক্ষম। শুধু তাই নয় ব্যাটিংয়েও দারুণ ভুমিকা রাখছে ব্যাটাররা।’

দলে ব্যাটিং ও বোলিং ভারসাম্যের কারণে পাকিস্তান এখন যে কোনো কন্ডিশনে ভালো খেলতে সক্ষম বলে মনে করছেন টেইট।

তিনি যোগ করেন, ‘দলে যদি পর্যাপ্ত ভালো খেলোয়াড় থাকে তবে আপনি যে কোন অবস্থাতেই ভালো খেলতে পারবেন। যেটা এই মুহূর্তে অস্ট্রেলিয়া দলে আছে। আমার কাছে মনে হয় পাকিস্তানও তাদের কাছাকাছি চলে এসেছে।’

বোলারদের উন্নতির বিষয়ে টেইট বলেন, ‘আমার সঙ্গে বেশিদিন হয়নি পেইসাররা কাজ করছে। তবে আগামী ৮-৯ মাসে তারা দারুণ উন্নতি করবে আর তা দেখতে আমি মুখিয়ে আছি। তাদের কিছু নিজস্ব কিছু কৌশল রয়েছে যা সঠিক ভাবে পরিচর্যা করতে পারলে সফলতা পাবে। আমার কাজ শুধু তাদেকে গাইড করা।’

আরও পড়ুন:
বড় জয়ে সিরিজ শুরু অস্ট্রেলিয়ার
পিন্ডির উইকেট নিয়ে রাজার হতাশা
পাকিস্তানের কোচিং প্যানেলে যুক্ত হলেন টেইট

মন্তব্য

আরও পড়ুন

খেলা
Sweaty win for Australia against Windies

উইন্ডিজের বিপক্ষে ঘাম ঝরানো জয় অস্ট্রেলিয়ার

উইন্ডিজের বিপক্ষে ঘাম ঝরানো জয় অস্ট্রেলিয়ার ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ম্যাচ জয়ের পর উচ্ছ্বসিত অস্ট্রেলিয়ার ব্যাটার ম্যাথিউ ওয়েড। ছবি: টুইটার
ওয়েস্ট ইন্ডিজের করা ৯ উইকেটে ১৪৫ রানের সংগ্রহকে টপকে জেতে তাদের খেলতে হয়েছে ১৯.৫ ওভার ও খোয়াতে হয়েছে ৭ উইকেট। 

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের আগে দলগুলো ব্যস্ত শেষ মূহুর্তের প্রস্তুতিতে। প্রস্তুতির অংশ হিসেবে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে দুই ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজ খেলছে বিশ্বকাপের আয়োজক ও বর্তমান টি-টোয়েন্টি বিশ্বচ্যাম্পিয়ন অস্ট্রেলিয়া।

প্রস্তুতির শুরুটা জয় দিয়ে হলেও পারফরম্যান্স চ্যাম্পিয়নদের মতো হয়নি অস্ট্রেলিয়ার। ওয়েস্ট ইন্ডিজের করা ৯ উইকেটে ১৪৫ রানের সংগ্রহকে টপকে জেতে তাদের খেলতে হয়েছে ১৯.৫ ওভার ও খোয়াতে হয়েছে ৭ উইকেট।

৩ উইকেটে জয় পেয়ে সিরিজে ১-০ ব্যবধানে এগিয়ে গেছে স্বাগতিক দল। দুই দলের দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টি শুক্রবার ব্রিসবেনে।

অস্ট্রেলিয়ার গোল্ডকোস্টে অনুষ্ঠিত ম্যাচে টস জিতে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে ব্যাট করার আমন্ত্রণ জানান অজি অধিনায়ক অ্যারন ফিঞ্চ।

ব্যাট করতে নেমে শুরুতে জনসন চার্লস ও ব্রেন্ডন কিংয়ের উইকেট হারায় উইন্ডিজ। কাইল মায়ার্স আক্রমণাত্মক খেললেও ৩৯ রান করে আউট হন দশম ওভারে।

এরপর টানা কয়েকটি উইকেট তুলে নিয়ে ম্যাচে প্রাধান্য বিস্তার করে অস্ট্রেলিয়া। অধিনায়ক নিকোলাস পুয়ারন ২, রেয়মন রেইফায় ১৯ ও রভম্যান পাওয়েল ৭ রান করে আউট হন।

জেসন হোল্ডার ও ওডেন স্মিথের চেষ্টায় রান দেড় শর কাছাকাছি স্কোর করে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। হোল্ডার ৭ বলে ১৩ আর স্মিথ ১৭ বলে ২৭ রান করেন।

অস্ট্রেলিয়ার পক্ষে জশ হেইজলউড ৩৫ রানে ৩টি আর মিচেল স্টার্ক ৪০ রানে ২টি উইকেট নেন।

ছোট লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে বিপাকে পড়ে অস্ট্রেলিয়াও। মারমুখি খেলতে যেয়ে ৫৮ রানে তারা হারিয়ে ফেলে ৫ উইকেট।

ডেভিড ওয়ার্নার ও ক্যামেরন গ্রিন ১৪ রান করে করেন। গ্লেন ম্যাক্সওয়েল ও টিম ডেভিড আউট হন শূন্য রানে আর মিচেল মার্শের ব্যাট থেকে আসে ৩।

এরপর দলের হাল ধরেন অধিনায়ক ফিঞ্চ ও উইকেটকিপার ব্যাটার ম্যাথিউ ওয়েড। ফিঞ্চ ৫৩ বলে ৫৮ রান করে দলকে জয়ের পথে রাখেন। আর ওয়েডের ব্যাট থেকে আসে ৩৯*।

ম্যাচ শেষ হওয়ার ১ বল আগে জয় নিশ্চিত করে অস্ট্রেলিয়া। ম্যাচসেরা হন অ্যারন ফিঞ্চ।

উইন্ডিজের পক্ষে ১৭ রানে ২ উইকেট নেন আলজারি জোসেফ। ২ উইকেট নেন শেলডন কটরেলও। তবে তিনি খরচ করেন ৪৯ রান।

আরও পড়ুন:
দ্বিতীয় ম্যাচ জিতে সমতায় ফিরল ভারত
গ্রিন-ওয়েড ঝড়ে জয়ে শুরু অস্ট্রেলিয়ার
অস্ট্রেলিয়ায় ক্লিন সুইপ হলো নিউজিল্যান্ড

মন্তব্য

খেলা
Jyoti in the list of the best of the month of September

সেপ্টেম্বরের মাস সেরার তালিকায় জ্যোতি

সেপ্টেম্বরের মাস সেরার তালিকায় জ্যোতি আইসিসির মাস সেরা পুরস্কারের জন্য মনোনীত ভারতের হারমানপ্রিত কউর, স্মৃতি মানধানা ও নিগার সুলতানা জ্যোতি। ছবি: আইসিসি
আবু ধাবিতে অনুষ্ঠিত বাছাইপর্বে তার অধিনায়কত্বে চ্যাম্পিয়ন হয় বাংলাদেশ। একই সঙ্গে জ্যোতি হন টুর্নামেন্টের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ রান স্কোরার।

সেপ্টেম্বরের মাস সেরা নারী ক্রিকেটার পুরস্কারের জন্য সংক্ষিপ্ত তালিকা প্রকাশ করেছে আইসিসি। বুধবার প্রকাশিত তালিকায় জায়গা করে নিয়েছেন বাংলাদেশ দলের অধিনায়ক নিগার সুলতানা জ্যোতি।

তালিকায় অন্য দুই তারকা ভারতের অধিনায়ক স্মৃতি মানধানা ও তার সতীর্থ হারমানপ্রিত কউর।

জ্যোতি মূলত মনোনয়ন পেয়েছেন গত মাসে আইসিসি টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ বাছাইপর্বের খেলায় চমকপ্রদ পারফরম্যান্সের কারণে। আবু ধাবিতে অনুষ্ঠিত বাছাইপর্বে তার অধিনায়কত্বে চ্যাম্পিয়ন হয় বাংলাদেশ। একই সঙ্গে জ্যোতি হন টুর্নামেন্টের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ রান স্কোরার।

৫ ম্যাচে তার ব্যাট থেকে আসে ৪৫ গড়ে ১৮০ রান। তার স্ট্রাইক রেট ছিল ১০৫.২৬।

টুর্নামেন্টের প্রথম ম্যাচে আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে ৫৩ বলে ৬৭ রান করেন জ্যোতি। দ্বিতীয় ম্যাচে স্কটল্যান্ডের বিপক্ষে তার ব্যাট থেকে আসে ৩৪ আর গ্রুপ পর্বের শেষ ম্যাচে যুক্তরাষ্ট্রের বিপক্ষে তিনি ৪০ বলে করেন ৫৬*।

বাংলাদেশ থেকে চাইলে ভক্তরা আইসিসির ওয়েবসাইটে গিয়ে জ্যোতিকে মাস সেরা তারকা হিসেবে ভোট দিতে পারেন। সে জন্য ক্লিক করতে হবে এই লিংকে

আরও পড়ুন:
মালয়েশিয়ার বিপক্ষে কন্ডিশনে ভরসা পাচ্ছে বাংলাদেশ
উইকেট নিয়ে এসিসির কাছে আপত্তি জানিয়েছে বাংলাদেশ
ভারতের কাছে পাত্তাই পেল না আমিরাত

মন্তব্য

খেলা
Bangladesh is confident of the conditions against Malaysia

মালয়েশিয়ার বিপক্ষে কন্ডিশনে ভরসা পাচ্ছে বাংলাদেশ

মালয়েশিয়ার বিপক্ষে কন্ডিশনে ভরসা পাচ্ছে বাংলাদেশ সিলেটে অনুশীলনে ব্যস্ত বাংলাদেশ নারী ক্রিকেট দল। ছবি: বিসিবি
সকালে যথেষ্ট রোদ থাকলে দুপুরে অনুষ্ঠিত ম্যাচে কন্ডিশন ও উইকেট ব্যাটিং সহায়ক থাকবে বলে প্রত্যাশা বাংলাদেশের। ম্যাচের আগের দিন সংবাদ সম্মেলনে এমনটাই জানান টাইগ্রেস স্পিনার সানজিদা আক্তার।

পাকিস্তানের বিপক্ষে নারী এশিয়া কাপের ম্যাচে পরিচিত কন্ডিশন ও উইকেটই শত্রু হয়ে দাঁড়িয়েছিল বাংলাদেশের। বৃষ্টি ভেজা মাঠ ও লো-টার্নিং ট্র্যাকে পাকিস্তানি বোলারদের সামনে নাস্তানাবুদ হয় স্বাগতিক ব্যাটাররা।

ওই ম্যাচের পর দুই দিনের বিরতি পেয়েছে বাংলাদেশ। বৃহস্পতিবার নিজেদের তৃতীয় ম্যাচে মালয়েশিয়ার মুখোমুখি হচ্ছে বাংলাদেশ। সিলেটে ম্যাচ শুরু হচ্ছে দুপুর দেড়টায়। যে কারণে উইকেটে পর্যাপ্ত রোদ চাইছে স্বাগতিক দল।

সকালে যথেষ্ট রোদ থাকলে দুপুরে অনুষ্ঠিত ম্যাচে কন্ডিশন ও উইকেট ব্যাটিং সহায়ক থাকবে বলে প্রত্যাশা বাংলাদেশের। ম্যাচের আগের দিন সংবাদ সম্মেলনে এমনটাই জানান টাইগ্রেস স্পিনার সানজিদা আক্তার।

তিনি বলেন, ‘সকালে যখন খেলি, বৃষ্টি ও কুয়াশা থাকে। মাঠ কিছুটা পিচ্ছিল থাকে। সেক্ষেত্রে লাঞ্চের পর যখন আমরা খেলব, উইকেট আলাদা থাকবে। রোদ থাকবে। আশা করা যায় তখন উইকেট একটু ফ্ল্যাট হবে।’

সানজিদা আরও বলেন, পাকিস্তানের বিপক্ষে হারকে আলাদাভাবে নিচ্ছে না বাংলাদেশ। দল পরের ম্যাচ জিতে ঘুরে দাঁড়াতে আত্মবিশ্বাসী।

তিনি যোগ করেন, ‘আমাদের সিনিয়ররা অনেক ইতিবাচক। তারা সবসময় আমাদের জুনিয়রদের সমর্থন দেন। হার-জিত থাকবেই। এটা নিয়ে কোনো নেতিবাচতা আমাদের নেই। আমরা ইতিবাচক আছি।’

প্রতিপক্ষ মালয়েশিয়ার বিপক্ষে রেকর্ডটাও ভালো বাংলাদেশের। দুই বারের দেখায় সহজ জয় পেয়েছেন সালমা-জ্যোতিরা। সে ধারাবাহিকতা বজায় রাখতে বৃহস্পতিবার মাঠে নামছে স্বাগতিক দল এমনটা নিশ্চিত করেন সানজিদা।

তিনি যোগ করেন, ‘মালয়েশিয়ার সঙ্গে কমনওয়েলথে মুখোমুখি হয়েছি। ওদের দল নিয়ে ধারণা আছে। প্রতিপক্ষকে ছোট বা বড় করে দেখার উপায় নেই। কারণ এটা গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচ। সবাই জেতার জন্য এসেছে। আমাদের লক্ষ্য থাকবে প্রতিপক্ষ যে-ই হোক ভালো খেলে শুরু ও শেষ করতে চাই।’

আরও পড়ুন:
উইকেট নিয়ে এসিসির কাছে আপত্তি জানিয়েছে বাংলাদেশ
ভারতের কাছে পাত্তাই পেল না আমিরাত
সালমাদের বিশ্বকাপ শুরু ১২ ফেব্রুয়ারি

মন্তব্য

খেলা
Tiger Youth is going to Pakistan in November

নভেম্বরে পাকিস্তান যাচ্ছে টাইগার যুবারা

নভেম্বরে পাকিস্তান যাচ্ছে টাইগার যুবারা অনূর্ধ্ব ১৯ দলের ক্রিকেটারদের অনুশীলন। ছবি: সংগৃহীত
৪ নভেম্বর মাঠে গড়াবে সিরিজের এক মাত্র ৪ দিনের ম্যাচ। এরপর ১০, ১২, ১৪, ১৬ ও ১৮ নভেম্বর অনুষ্ঠিত হবে সিরিজের পাঁচটি ওয়ানডে ম্যাচ। সবগুলো খেলা হবে ফয়সলাবাদের ইকবাল স্টেডিয়ামে।

চলতি বছরের ফেব্রুয়ারিতে অনূর্ধ্ব ১৯ বিশ্বকাপ মিশন শেষ করার পর আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে মাঠে নামা হয়নি জাতীয় দলের যুবাদের। দীর্ঘ ৯ মাসের বিরতির পর অবশেষে ২২ গজে ফিরতে যাচ্ছে যুবা ক্রিকেটাররা। নভেম্বরের প্রথম সপ্তাহে দুই ফরম্যাটের সিরিজ খেলতে পাকিস্তান যাচ্ছে অনূর্ধ্ব ১৯ দলের ক্রিকেটাররা।

সব কিছু ঠিক থাকলে পাকিস্তানের যুব দলের বিপক্ষে একটি চার দিনের ও ৫টি একদিনের ম্যাচ খেলবে বাংলাদেশের যুবারা। ১ নভেম্বর দেশ ছাড়ার কথা রয়েছে বিশ্বকাপজয়ীদের।

সংবাদমাধ্যমকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বিসিবির গেম ডেভেলপমেন্টের ম্যানেজার এইএম কায়সার।

তিনি বলেন, ‘আশা করা যাচ্ছে বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব ১৯ দল ১ নভেম্বর পাকিস্তানের উদ্দেশে দেশ ত্যাগ করবে। তবে এখনই সিরিজের সূচি বলা যাচ্ছে না। কিন্তু আমাদের বলা হয়েছে ১৯ নভেম্বরের ভিতর সিরিজটি শেষ করতে।’

কায়সার আরও বলেন, ‘তবে এটা নিশ্চিতভাবেই বলতে পারি যে, ১৯ নভেম্বরের ভেতর সিরিজ শেষ করে ২০ নভেম্বরের ভেতর আমাদের ফিরে আসতে হবে।’

আনুষ্ঠানিকভাবে সিরিজের সূচি এখনও বোর্ডের পক্ষ থেকে জানানো হয়নি।

তবে বোর্ডের সূত্রে জানা গেছে ৪ নভেম্বর মাঠে গড়াবে সিরিজের এক মাত্র ৪ দিনের ম্যাচ। এরপর ১০, ১২, ১৪, ১৬ ও ১৮ নভেম্বর অনুষ্ঠিত হবে সিরিজের পাঁচটি ওয়ানডে ম্যাচ। সবগুলো খেলা হবে ফয়সলাবাদের ইকবাল স্টেডিয়ামে।

আরও পড়ুন:
লিটনকে ওপেনিংয়ে খেলাবেন না সিডন্স
আঞ্চলিক ক্রিকেট সংস্থার অনুমোদন পেয়েছে বিসিবি
টস হেরে ব্যাটিংয়ে বাংলাদেশ
টস হেরে বোলিংয়ে বাংলাদেশ
ত্রিদেশীয় সিরিজ ও বিশ্বকাপ মিশনে দেশ ছেড়েছে জাতীয় দল

মন্তব্য

খেলা
Cant express ambition for fear of failure Sohan

ব্যর্থতার ভয়ে উচ্চাকাঙ্ক্ষা প্রকাশ করতে পারি না: সোহান

ব্যর্থতার ভয়ে উচ্চাকাঙ্ক্ষা প্রকাশ করতে পারি না: সোহান নিউজিল্যান্ডে জাতীয় দলের ক্রিকেটারদের অনুশীলন। ছবি: বিসিবি
জাতীয় টি-টোয়েন্টি দলের সহ-অধিনায়ক নুরুল হাসান সোহান জানালেন, খারাপ খেললে দলে জায়গা হারাতে হতে পারে এমন ব্যর্থতার চাপই ভালো করার অন্তরায়।

ব্যর্থতার বেড়াজালে আটকে বিপর্যস্ত জাতীয় দল। টি-টোয়েন্টিতে সময়টা খুব একটা ভালো যাচ্ছে না টাইগারদের। টানা হারে জর্জরিত দল জয়ের সন্ধানে আইসিসির সহযোগী দেশের বিপক্ষে পর্যন্ত সিরিজ খেলেছে। আমিরাতের বিপক্ষে জয় বাগিয়ে নিয়ে বিশ্বকাপের প্রস্তুতি নিয়েছে।

ম্যাচের চাপে জাতীয় দলের ক্রিকেটারদের ভেঙে পড়ার নজির দেখা যায় হরহামেশা। বিশেষ করে দলের ভবিষ্যৎ হিসেবে জায়গা করে নেয়া নাজমুল শান্ত, নুরুল হাসান সোহান, মোসাদ্দেক সৈকতদের মতো অপেক্ষাকৃত তরুণ ক্রিকেটারদের এ চাপ নিতে দেখা যায় বেশি।

জাতীয় টি-টোয়েন্টি দলের সহ-অধিনায়ক নুরুল হাসান সোহান জানালেন, খারাপ খেললে দলে জায়গা হারাতে হতে পারে এমন ব্যর্থতার চাপই আসলে ভালো করার অন্তরায়।

ব্যক্তিগত ও দলীয় ব্যর্থতার ভয়ে বড় টুর্নামেন্টের আগে নিজেদের বড় লক্ষ্য প্রকাশ করতে সঙ্কোচ বোধ করেন খেলোয়াড়রা। বুধবার নিউজিল্যান্ডে ত্রিদেশীয় সিরিজের ট্রফি উন্মোচন অনুষ্ঠানে সংবাদমাধ্যমকে এমনটাই বলেন সোহান।

তিনি বলেন, ‘আমাদের সংস্কৃতিটাই এমন যে আমরা ব্যর্থতার ভয়ে আমাদের লক্ষ্য ও উচ্চাকাঙ্ক্ষা প্রকাশ করতে পারি না। আমি যদি বলি আমি বিশ্বকাপ জিততে চাই, তাহলে সেটা জরুরি না যে আমাদের জিততে হবে।’

‘এমনটা বলতে থাকলে, হয়তো আমাদের পরের প্রজন্ম বিশ্বকাপ জয়ের ব্যাপারে আরও আত্মবিশ্বাসী হবে। আমি হয়তো সেটি করতে পারব না। কিন্তু আমার বিশ্বাস আছে আমরা সেখানে যেতে পারব।’

বিশ্বকাপের আগে শেষ বারের মতো প্রস্তুতি নিতে পাকিস্তান ও নিউজিল্যান্ডের সঙ্গে ত্রিদেশীয় সিরিজ খেলবে বাংলাদেশ। এই সিরিজের ম্যাচের ফলাফল নিয়ে খুব একটা ভাবছেন না জাতীয় দলের এই ডেপুটি।

সোহান বলেন, ‘আমাদের দলের পরিবেশ খুবই ভালো। সবার কাছে একটা বার্তাই যাচ্ছে যে, আমরা যেন ম্যাচের ফল নিয়ে চিন্তা না করি। আমরা একটা প্রক্রিয়ায় মধ্যে আছি। ব্যক্তিগত কথা চিন্তা না করে আমরা যেন দল হিসেবে খেলতে পারি।’

আরও পড়ুন:
লিটনকে ওপেনিংয়ে খেলাবেন না সিডন্স
আঞ্চলিক ক্রিকেট সংস্থার অনুমোদন পেয়েছে বিসিবি
টস হেরে ব্যাটিংয়ে বাংলাদেশ
টস হেরে বোলিংয়ে বাংলাদেশ
ত্রিদেশীয় সিরিজ ও বিশ্বকাপ মিশনে দেশ ছেড়েছে জাতীয় দল

মন্তব্য

খেলা
Mashrafe is not in the tri series

ত্রিদেশীয় সিরিজে না থেকেও আছেন মাশরাফি

ত্রিদেশীয় সিরিজে না থেকেও আছেন মাশরাফি সিরিজের ট্রফির সঙ্গে নুরুল হাসান সোহান, কেইন উইলিয়ামসন ও বাবর আজম। ছবি: টুইটার
সিরিজের টাইটেল স্পন্সর হিসেবে রয়েছে ডিটারজেন্ট কোম্পানি ‘বাংলাওয়াশ’। আর এই পণ্যটির ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসেডর জাতীয় দলের সফলতম অধিনায়ক মাশরাফি বিন মোর্ত্তজা।

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের আগে প্রস্তুতি হিসেবে পাকিস্তান ও নিউজিল্যান্ডের সঙ্গে ত্রিদেশীয় সিরিজ খেলবে বাংলাদেশ। সিরিজকে সামনে রেখে বুধবার ক্রাইস্টচার্চে উন্মোচন করা হয়েছে ট্রফি।

সিরিজের টাইটেল স্পন্সর হিসেবে রয়েছে ডিটারজেন্ট কোম্পানি ‘বাংলাওয়াশ’। আর এই পণ্যটির ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসেডর জাতীয় দলের সফলতম অধিনায়ক মাশরাফি বিন মোর্ত্তজা।

২০১০ সালে প্রথমবারের মতো নিউজিল্যান্ডকে ক্লিন সুইপ করেছিল বাংলাদেশ। শেষ ম্যাচের পর বাংলাদেশের ধারাভাষ্যকার আতহার আলী খান প্রথম ব্যবহার করেন ‘বাংলাওয়াশ’ উপমাটি।

এরপর থেকে ‘বাংলাওয়াশ’ এর প্রচলন শুরু। বাংলাদেশ কোন দলকে ক্লিন সুইপ করলে সে দল বাংলাওয়াশ হয়েছে বলা হয়ে থাকে।

সেই বাংলা ওয়াশের স্মৃতি নিয়ে ৭ অক্টোবর পাকিস্তানের বিপক্ষে বাংলা ওয়াশ টি-টোয়েন্টি ত্রিদেশীয় সিরিজ শুরু করতে যাচ্ছে লাল সবুজের প্রতিনিধিরা।

ট্রফির সঙ্গে আনুষ্ঠানিক ফটোসেশনে বাংলাদেশের পক্ষ থেকে সাকিব আল হাসানের পরিবর্তে ছিলেন নুরুল হাসান সোহান।

৭ অক্টোবর থেকে শুরু হয়ে সিরিজটি চলবে ১৪ অক্টোবর পর্যন্ত। তিন দল মোট ৭টি ম্যাচ খেলবে। যেখানে প্রত্যেকটি দল একে অপরের বিপক্ষে ২টি করে ম্যাচ খেলবে, বাকি ম্যাচটি ফাইনাল।

আরও পড়ুন:
আঞ্চলিক ক্রিকেট সংস্থার অনুমোদন পেয়েছে বিসিবি
টস হেরে ব্যাটিংয়ে বাংলাদেশ
টস হেরে বোলিংয়ে বাংলাদেশ
ত্রিদেশীয় সিরিজ ও বিশ্বকাপ মিশনে দেশ ছেড়েছে জাতীয় দল
রাতে নিউজিল্যান্ড যাচ্ছে বাংলাদেশ দল

মন্তব্য

খেলা
Muminul Nei Mushfiq is in this team

এ-দলে আছেন মুমিনুল, নেই মুশফিক

এ-দলে আছেন মুমিনুল, নেই মুশফিক ফাইল ছবি
বিশ্বকাপ দলে জায়গা না পাওয়া শেখ মেহেদী হাসান খেলবেন একদিনের ম্যাচে। তার সঙ্গে ডাক পেলেন ওপেনার নাইম শেখ, শামীম হোসেন পাটোয়ারী। তবে জায়গা হয়নি মুশফিকুর রহিমের। 

আফগানিস্তানের বিপক্ষে সিরিজ বাতিল হওয়ার পর ফাঁকা সময়টা কাজে লাগাতে বাংলাদেশ এ-দলকে ভারত পাঠানোর পরিকল্পনা করে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। তামিলনাড়ুর রঞ্জির দলের সঙ্গে একটি সিরিজ খেলতে যাচ্ছে বাংলাদেশ।

এবারে চূড়ান্ত হল খেলার ফরম্যাট। তামিলনাড়ুর দলের বিপক্ষে দুটি ৪ দিনের ম্যাচ ও ৩ টি একদিনের ম্যাচ খেলবে এ-দল।

সিরিজকে সামনে রেখে বুধবার দুই ফরম্যাটের দল ঘোষণা করেছে বিসিবি। ১৪ সদস্যের চার দিনের ম্যাচের স্কোয়াডে ডাক পেয়েছেন জাতীয় দলের সাবেক টেস্ট অধিনায়ক মুমিনুল হক। একইসঙ্গে দুই ফরম্যাটের জন্য রাখা হয়েছে এনামুল হক বিজয়কে। বরাবরের মতো অধিনায়ক হিসেবে থাকছেন মোহাম্মদ মিঠুন।

বিশ্বকাপ দলে জায়গা না পাওয়া শেখ মাহেদী হাসান খেলবেন একদিনের ম্যাচে। তার সঙ্গে আছেন ওপেনার নাইম শেখ, শামীম হোসেন পাটোয়ারী।

লঙ্গার ফরম্যাটের দলে রাখা হয়নি মুশফিকুর রহিমকে।

৯ অক্টোবর চেন্নাইয়ের উদ্দেশ্যে রওনা হবে দল। প্রথম চারদিনের ম্যাচটি মাঠে গড়াবে ১২ অক্টোবর। পরেরটি শুরু হবে ১৯ অক্টোবর থেকে।

২৭, ২৯ ও ৩১ অক্টোবর মাঠে গড়াবে একদিনের তিনটি ম্যাচ। সবগুলো ম্যাচ অনুষ্ঠিত হবে চেন্নাইয়ের এম এ চিদাম্বরম স্টেডিয়ামে।

চারদিনের ম্যাচের সিরিজের স্কোয়াড: মোহাম্মদ মিঠুন (অধিনায়ক), সাদমান ইসলাম, সাইফ হাসান, মাহমুদুল হাসান জয়, মুমিনুল হক, এনামুল হক (বিজয়), তৌহিদ হৃদয়, জাকের আলি অনিক, নাঈম হাসান, তাইজুল ইসলাম, সৈয়দ খালেদ আহমেদ, রেজাউর রহমান রাজা, মুকিদুল ইসলাম, এনামুল হক বিজয়।

একদিনের ম্যাচের সিরিজের স্কোয়াড: মোহাম্মদ মিঠুন (অধিনায়ক), সাইফ হাসান, এনামুল হক বিজয়, মোহাম্মদ নাঈম শেখ, মাহমুদুল হাসান জয়, শামীম হোসেন, তৌহিদ হৃদয়, আকবর আলি, তানভির ইসলাম, শেখ মেহেদি হাসান, মৃত্যুঞ্জয় চৌধুরি, রিপন মন্ডল, মুকিদুল ইসলাম, রিশাদ হোসেন, রেজাউর রহমান রাজা।

আরও পড়ুন:
টস হেরে বোলিংয়ে বাংলাদেশ
ত্রিদেশীয় সিরিজ ও বিশ্বকাপ মিশনে দেশ ছেড়েছে জাতীয় দল
রাতে নিউজিল্যান্ড যাচ্ছে বাংলাদেশ দল
ম্যানেজার থাকছেন না, আগে থেকেই জানতেন নাফিস
শামীমের নতুন ইনিংস শুরু

মন্তব্য

p
উপরে