× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ পৌর নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট

খেলা
Fearing the Taliban 11 Afghan boxers fled to Belgrade
hear-news
player
print-icon

তালেবানের ভয়ে বেলগ্রেডে পালিয়ে ১১ আফগান বক্সার

তালেবানের-ভয়ে-বেলগ্রেডে-পালিয়ে-১১-আফগান-বক্সার
বেলগ্রেডে অনুশীলন করছেন আফগান বক্সাররা। ছবি: এএফপি
১১ বক্সারের সঙ্গে দুজন কর্মকর্তাও রয়েছেন, যারা বেলগ্রেডে থেকে গেছেন। পুরো দলটি এখন শহরের বিভিন্ন হোটেলে থাকছে।

ইন্টারন্যাশনাল বক্সিং অ্যাসোসিয়েশনের (এআইবিএ) বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপে অংশ নিতে নভেম্বরে সার্বিয়ার রাজধানী বেলগ্রেডে গিয়েছিল আফগানিস্তানের একট বক্সিং দল। তাদের ১১ জন দেশে ফিরতে অস্বীকৃতি জানিয়েছেন।

১১ বক্সারের সঙ্গে দুজন কর্মকর্তাও রয়েছেন, যারা বেলগ্রেডে থেকে গেছেন। পুরো দলটি এখন শহরের বিভিন্ন হোটেলে থাকছে।

দলের সদস্য ১৯ বছর বয়সী লাইটওয়েইট বক্সার ও আফগানিস্তানে নিজের ক্যাটাগরিতে জাতীয় চ্যাম্পিয়ন হাসিব মালিকজাদা বার্তা সংস্থা এএফপিকে জানান, তারা তালেবানের ভয়ে দেশে ফিরছেন না। দেশের ফিরলে অনেকের প্রাণহানির আশঙ্কা আছে।

তিনি যোগ করেন, ‘তালেবান আসার পর আমরা বক্সিং চালিয়ে যেতে পারছিলাম না। জিম বন্ধ হয়ে গিয়েছিল।’

তার দুই ভাই তালেবান সরকারের বিরোধী পক্ষে যোগ দেন ও পাঞ্জশিরে যুদ্ধ করেন। যে কারণে মৃত্যভয় তার বেশি।

মালিকজাদা বলেন, ‘তালেবানরা আমাদের খুঁজে পেলে মেরে ফেলবে।’

আফগানিস্তানের যুদ্ধবিধ্বস্ত অবস্থার মধ্যেই মালিকজাদার মতো বক্সাররা নিজেদের অনুশীলন চালিয়ে গেছেন।

চারদিকের তাণ্ডবলীলার মাঝে তারা অনুশীলনের সময়টুকুতে শান্তি খুঁজে পেতেন বলে জানান ২০ বছর বয়সী তওফিকুল্লাহ সোলাইমানি।

তিনি বলেন, ‘বক্সিং আমাদের শরীর, স্বাস্থ্য ও মনকে প্রফুল্ল রাখত।’

তালেবানের প্রথম শাসনামলে ১৯৯০-এর দশকে বক্সিংকে নিষিদ্ধ করা হয়। এবারও তাই তালেবান ক্ষমতায় আসার পর থেকে বক্সাররা গোপনে অনুশীলন করতেন ও সরঞ্জাম লুকিয়ে রাখতেন।

সার্বিয়ায় তারা এসেছেন সীমানা পেরিয়ে ইরান হয়ে। তেহরানে তাদের টুর্নামেন্টের আগ মুহূর্তে সার্বিয়ার ভিসা দেয়া হয়।

এত সমস্যার মাঝেও নিজেদের খেলা চালিয়ে গেছেন আফগান বক্সাররা। সার্বিয়ায় আসার পর খুব ভালো করে বিশ্রাম নেয়ার সুযোগ না পেলেও অনুশীলন চালিয়ে গেছেন বলে জানান আফগান বক্সিং ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক ওয়াহিদুল্লাহ হামিদি।

হামিদি এএফপিকে বলেন, ‘আমি দেশ থেকে অনেক সতর্ক বার্তা পাচ্ছি। পরিবার ও বন্ধুরা বলছে দেশে না ফিরতে।’

দুই বছর আগে তালেবানের হাতে তার বাবা নিহত হন। হামিদির বাবা বক্সিং ফেডারশনের কর্মকর্তা ছিলেন। বক্সিংয়ে নারীদের অনুমতি দেয়ার জন্য তাকে হত্যা করা হয়।

পরিস্থিতি ঠিক না হলে দেশে ফিরতে চান না বক্সাররা। তবে শরণার্থীর জীবন নিয়ে কেউই সন্তুষ্ট নন।

হামিদি বলেন, ‘এটা অত্যন্ত দুঃখজনক একটা পরিস্থিতি। কেউই তাদের মাতৃভূমি ছেড়ে থাকতে চায় না।’

আরও পড়ুন:
তালেবানকে ভয়ের কিছু নেই, বাংলাদেশ প্রস্তুত: প্রধানমন্ত্রী
ফিলিপাইনের প্রেসিডেন্ট হওয়ার দৌড়ে প্যাকিয়াও

মন্তব্য

আরও পড়ুন

খেলা
Mushfiqur next to the flood victims in Sylhet

সিলেটের বন্যার্তদের পাশে মুশফিক

সিলেটের বন্যার্তদের পাশে মুশফিক সিলেটের বন্যার্তদের সাহায্য হাত বাড়িয়ে দিলেন মুশফিক। ফাইল ছবি
আশা করা হচ্ছে, অন্তত দেড় হাজার পরিবারের কাছে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করা সম্ভব হবে মুশির অনুদানের অর্থ দিয়ে।

সিলেটের বন্যার্তদের সাহায্যার্থে হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন জাতীয় দলের উইকেটরক্ষক ব্যাটার মুশফিকুর রহিম। নিজের এক মাসের বেতনের পুরোটাই তিনি অনুদান হিসেবে দিয়েছেন বন্যার্তদের সাহায্যার্থে।

জানা গেছে, মুশফিকের এই অনুদান দিয়ে সিলেটের স্থানীয় একটি স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন বন্যার্তদের মাঝে ত্রাণ হিসেবে বিতরণ করবে। আশা করা হচ্ছে, অন্তত দেড় হাজার পরিবারের কাছে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করা সম্ভব হবে মুশির অনুদানের অর্থ দিয়ে।

বর্তমানে পবিত্র হজ্ব পালনের জন্য ছুটিতে রয়েছেন জাতীয় দলের অভিজ্ঞ এই ক্রিকেটার। কিছুদিনের মধ্যেই হজ্ব পালনের উদ্দেশে দেশ ত্যাগ করবেন ডানহাতি এই ব্যাটার।

এর আগে সিলেটের বন্যা কবলিত অঞ্চলের মানুষদের পাশে দাঁড়িয়েছিল বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড বিসিবি। পাঁচ হাজার মানুষকে খাদ্য সরবরাহ করেছিল দেশের ক্রিকেটের সর্বোচ্চ নিয়ন্ত্রক সংস্থাটি।

এ ছাড়া তামিম ইকবাল ও সৌম্য সরকারও হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন বন্যার্তদের সাহায্যার্থে।

আরও পড়ুন:
আবারও মাস সেরার দৌড়ে মুশফিক
হজে যাচ্ছেন মুশফিক, থাকছেন না উইন্ডিজ সিরিজে
করোনায় আক্রান্ত মুশফিকের মা-বাবা
আইসিসির মে মাসের সেরা মুশফিক
জিম্বাবুয়ের টি-টোয়েন্টি সিরিজ থেকে ছুটি চান মুশফিক

মন্তব্য

খেলা
With one match left the series is for Sri Lanka

এক ম্যাচ বাকি থাকতেই সিরিজ শ্রীলঙ্কার

এক ম্যাচ বাকি থাকতেই সিরিজ শ্রীলঙ্কার
টসে হেরে ব্যাট করতে নেমে প্রথমেই বিপর্যয়ে পড়ে শ্রীলঙ্কা। তবে চারিথ আশালাঙ্কার সেঞ্চুরিতে ভর করে শেষ পর্যন্ত ২৫৮ রানের সংগ্রহ গড়ে স্বাগতিকরা। জবাবে ব্যাট করতে নেমে ডেভিড ওয়ার্নারের ৯৯ ছাড়া অস্ট্রেলিয়া দলের আর কেউই বড় অংকের স্কোর গড়তে পারেননি।

অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে পাঁচ ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজে হ্যাট্রিক জয় তুলে নিয়ে সিরিজ নিজেদের করে নিল শ্রীলঙ্কা। সিরিজের চতুর্থ ওয়ানডেতে অজিদের ২৫৯ রানের লক্ষ্য ছুড়ে দিয়ে শেষ ওভারের রোমাঞ্চে ৪ রানে জয় পেল স্বাগতিকরা।

এই জয়ের সুবাদে ৩-১ ব্যবধানে সিরিজ জিতে নিয়েছে লঙ্কানরা।

কলম্বোর প্রেমাদাসা স্টেডিয়ামে টসে জিতে শ্রীলঙ্কাকে ব্যাট করতে পাঠায় অস্ট্রেলিয়া। ব্যাট হাতে নেমে ইনিংসের দ্বিতীয় ওভারেই ম্যাক্সওয়েলের শিকার হয়ে ১ রানে সাজঘরে ফিরে যান ওপেনার নিরোশান ডিকভেলা।

এরপর স্কোরবোর্ডে ৩৪ রান তুলতেই সাজঘরের পথ ধরেন কুশল মেন্ডিস ও পাথুম নিশাঙ্কা। প্যাট কামিন্স ফেরান মেন্ডিসকে ১৪ রানে আর আর মিচেল মার্শের শিকার হয়ে ১৩ রানে ফেরেন নিশাঙ্কা।

দলের এই ব্যাটিং বিপর্যয়ে ধনঞ্জয়া ডি সিলভাকে সঙ্গে নিয়ে ইনিংস মেরামতের মিশনে নামেন চারিথ আশালাঙ্কা। দুজনে মিলে ১০১ রানের জুটি গড়ে দলকে ফেরান ট্র্যাকে। দলীয় ১৩৫ রানে ধনঞ্জয়া ৬০ রান করে মাঠ ছাড়লেও উইকেট কামড়ে ধরে রানের চাকা সচল রাখেন আশালাঙ্কা।

উইকেটের অপর প্রান্ত থেকে সাড়া না মিললেও ৯৯ বলে ক্যারিয়ারের প্রথম ওয়ানডে শতক তুলে নেয়ার পাশাপাশি তিনি দলকে পার করান ২৫০ রানের কোঠা। দলীয় ২৫৬ রানে আশালাঙ্কা বিদায় নেয়ার পর দলের স্কোর আর বেশিদূর এগুতে পারেনি। ভেঙে পড়ে লঙ্কানদের ব্যাটিং লাইন-আপ।

শেষতক ২৫৮ রানে গুটিয়ে যায় লঙ্কানদের ইনিংস।

অজিদের হয়ে দুটি করে উইকেট নেন প্যাট কামিন্স, মিচেল মার্শ ও ম্যাথিউ কুনেম্যান। গ্লেন ম্যাক্সওয়েল নেন একটি উইকেট।

জবাবে ব্যাট করতে নেমে শুরুতেই অ্যারন ফিঞ্চকে হারায় অজিরা। এরপর একে একে সাজঘরে ফিরতে হয় মিচেল মার্শ (২৬), মার্নাস ল্যাবুশেইন (১৪), অ্যালেক্স ক্যারি (১৯), ট্রাভিস হেডকে (২৭)।

তবে উইকেটের এক প্রান্ত আগলে রেখে ব্যক্তিগত অর্ধশতক তুলে নেন ডেভিড ওয়ার্নার। হাফ সেঞ্চুরি তুলে নিয়ে তিনি ব্যাট ছুটান সেঞ্চুরির পথে। কিন্তু তারকা এই ব্যাটারকে মাঠ ছাড়তে হয় এক রানের হতাশা নিয়ে।

ব্যক্তিগত ৯৯ রানে ধনঞ্জয়া ডি সিলভাকে ডাউন দ্য উইকেটে এসে মারতে গিয়ে পরাস্ত হন ওয়ার্নার। উইকেটের পেছনে থাকা ডিকিভেলার স্টাম্পিংয়ের শিকার হয়ে একবুক হতাশা নিয়ে মাঠ ছাড়তে হয় তাকে।

এরপরই বলতে গেলে জয়ের আশার প্রদীপ নিভু নিভু হয়ে যায় অস্ট্রেলিয়ার। শেষ দিকে প্যাট কামিন্সের ৩৫ ও ম্যাথিউ উ কুনেম্যানের ১৫ রানে ভর করে জয়ের কাছাকাছি গিয়েও শেষরক্ষা হয়নি অস্ট্রেলিয়ার। চার রানের হার সঙ্গী করে মাঠ ছাড়তে হয় তাদের। একইসঙ্গে সিরিজ ঘরে তোলে স্বাগতিক শ্রীলঙ্কা।

আরও পড়ুন:
দ্বিতীয় টেস্টেই খেলতে চান বিজয়
শ্রীলঙ্কায় খাদ্যের অভাব ৫০ লাখ মানুষের: জাতিসংঘ
নিশাঙ্কার সেঞ্চুরিতে লঙ্কানদের টানা দ্বিতীয় জয়
দলের ভেতরের খবর পাচ্ছেন না পাপন
ব্যর্থতায় ভরা টেস্টেও টাইগারদের রেকর্ডের ছড়াছড়ি

মন্তব্য

খেলা
Trans women are banned from world womens swimming competitions

ট্রান্স নারীরা ‘বিশ্ব নারী সাঁতার প্রতিযোগিতা’ থেকে নিষিদ্ধ

ট্রান্স নারীরা ‘বিশ্ব নারী সাঁতার প্রতিযোগিতা’ থেকে নিষিদ্ধ লিয়া টমাস মার্চে এনসিএএ সাঁতার প্রতিযোগিতায় প্রথম ট্রান্স ক্রীড়াবিদ হিসেবে শিরোপা জেতেন। ছবি: এপি
নতুন নীতি সম্পর্কে ফিনার প্রেসিডেন্ট হুসেন আল-মুসাল্লাম বলেন, ‘ক্রীড়াবিদদের প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার অধিকার রক্ষা করতে হবে। আমাদের ইভেন্টগুলোতে, বিশেষ করে ফিনা প্রতিযোগিতায় নারী বিভাগে প্রতিযোগিতামূলক ভারসাম্য রক্ষা করতে হবে।’

আন্তর্জাতিক নারী সাঁতার প্রতিযোগিতায় অংশ নিতে পারবেন না ট্রান্সজেন্ডার। এ প্রশ্নে হওয়া ভোটের পর এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে সাঁতারের বিশ্ব পরিচালন সংস্থা- ফিনা। তারা বলেছে, যেসব নারী পুরুষালি আচরণের যেকোনো শারীরিক অভিজ্ঞতা অনুভব করেছেন, তাদের ক্ষেত্রে এই নিয়ম প্রযোজ্য হবে।

হাঙ্গেরির বুদাপেস্টে ১৫২টি দেশের ফেডারেশন ভোটে অংশ নেয়। ৭১ শতাংশ ভোট পড়ে ট্রান্সজেন্ডারদের বাদ দেয়ার পক্ষে।

ফিনা বৈজ্ঞানিক প্যানেলের একটি প্রতিবেদন বলছে, ট্রান্স নারীরা ওষুধের মাধ্যমে তাদের টেস্টোস্টেরনের মাত্রা কমানোর পরও সিসজেন্ডার নারী সাঁতারুদের তুলনায় উল্লেখযোগ্য সুবিধা পেয়ে থাকে।

ফিনার নতুন ৩৪ পৃষ্ঠার নীতিতে বলা হয়েছে, পুরুষ থেকে নারীতে রূপান্তর ক্রীড়াবিদরা কেবল তখনই নারী বিভাগে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে পারবে, যখন তারা এটা প্রমাণ করতে পারবে যে ট্যানার স্টেজ-টুর বাইরে পুরুষ বয়ঃসন্ধির কোনো কিছু অনুভব করেনি।

নতুন নীতি সম্পর্কে ফিনার প্রেসিডেন্ট হুসেন আল-মুসাল্লাম বলেন, ‘ক্রীড়াবিদদের প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার অধিকার রক্ষা করতে হবে। আমাদের ইভেন্টগুলোতে, বিশেষ করে ফিনা প্রতিযোগিতায় নারী বিভাগে প্রতিযোগিতামূলক ভারসাম্য রক্ষা করতে হবে।’

এই জটিলতায় যারা পড়বেন তাদের আশাহত হওয়ার কারণ নেই। ফিনার নতুন নীতিতে বলা হয়েছে, কিছু ইভেন্টে ট্রান্স নারীদের জন্য একটি ‘উন্মুক্ত’ বিভাগ খোলা হবে।

ফিনার সভাপতি মুসাল্লাম বলেন, ‘আমরা সব সময় ক্রীড়াবিদকে স্বাগত জানাই। একটি উন্মুক্ত বিভাগ তৈরির অর্থ হলো, প্রত্যেকেরই অভিজাত স্তরে প্রতিযোগিতা করার সুযোগ রয়েছে। এটি আগে করা হয়নি। তাই ফিনাকে পথ দেখাতে হবে।’

এর আগে ২০২০ সালে বিশ্ব রাগবি প্রতিযোগিতায় এমন সিদ্ধান্ত এসেছিল। তবে টেস্টোস্টেরনের মাত্রা দিয়ে বাছাই করাকে অনেকেই করেছেন প্রশ্নবিদ্ধ। আরও অনেক প্রতিযোগিতায় এই পদ্ধতির মধ্য দিয়ে যেতে হয় ট্রান্স নারীদের।

যুক্তরাষ্ট্রে লিয়া টমাস এক ট্রান্স নারী সাঁতারু, যিনি কলেজভিত্তিক একটি সাঁতার প্রতিযোগিতায় (পুরুষ বিভাগে) গেল মার্চে শিরোপা জেতেন। বিষয়টি তখন বেশ আলোচিত হয়। অনেকেই দাবি তুলেছিলেন, এ ধরনের সাফল্য অবশ্যই উদযাপন করা উচিত। ফিনার নতুন সিদ্ধান্তে প্যারিস অলিম্পিকে থমাস আর নারী বিভাগে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে পারবেন না।

সাবেক ব্রিটিশ সাঁতারু শ্যারন ডেভিস অবশ্য এই খবরকে স্বাগত জানিয়েছেন। টুইটে তিনি লেখেন, ‘আমি আপনাকে বলতে পারব না যে আমি আমার খেলাধুলার জন্য কতটা গর্বিত। ফিনা এবং ফিনা প্রেসিডেন্ট বিজ্ঞানের ভিত্তিতে এমন করছেন। সাঁতার সব সময় সবাইকে স্বাগত জানাবে, তবে ন্যায্যতা হলো খেলার ভিত্তি।’

আরেক সাবেক ব্রিটিশ সাঁতারু ক্যারেন পিকারিং বলেন, ‘উপস্থাপনা, আলোচনা এবং ভোটের জন্য ফিনা কংগ্রেসে ছিলাম। যেকোনো ক্রীড়াবিদ যারা এখন প্রতিযোগিতায় অংশ নিতে পারবে না তাদের জন্য সহানুভূতি জানাতে পারি। নারীদের বিভাগে প্রতিযোগিতামূলক ন্যায্যতা অবশ্যই রক্ষা করা উচিত।’

আরও পড়ুন:
পুলিশের উদ্যোগে ট্রান্সজেন্ডারদের জন্য পার্লার-ফুডকোর্ট
ট্রান্সজেন্ডারদের সুরক্ষায় হচ্ছে আইন
ট্রান্সজেন্ডার মেঘা চাকরির আবেদন করলেন ‘নারী’ হিসেবে
মা-বাবার সম্পত্তি পাবেন ট্রান্সজেন্ডার
করোনায় চিকিৎসা নিতে বৈষম্যের শিকার ট্রান্সজেন্ডাররা

মন্তব্য

খেলা
The Warriors won the NBA title four years after losing to the Celtics

সেল্টিকসকে হারিয়ে ৪ বছর পর এনবিএ শিরোপা ওয়ারিয়র্সের

সেল্টিকসকে হারিয়ে ৪ বছর পর এনবিএ শিরোপা ওয়ারিয়র্সের সেল্টিকসের বিপক্ষে ফাইনালে পয়েন্ট স্কোর করছেন স্টেফ কারি। ছবি: এএফপি
বেস্ট অফ সেভেন সিরিজের ফাইনালের ৬ষ্ঠ ম্যাচে ১০৩-৯০ পয়েন্টে বোস্টন সেল্টিকসকে হারিয়ে শিরোপা জিতে নিয়েছে ওয়ারিয়র্স।

চার বছর পর বিশ্বের সবচেয়ে জনপ্রিয় বাস্কেটবল লিগ এনবিএর শিরোপা জিতেছে গোল্ডেন স্টেট ওয়ারিয়র্স। বেস্ট অফ সেভেন সিরিজের ফাইনালের ৬ষ্ঠ ম্যাচে ১০৩-৯০ পয়েন্টে বোস্টন সেল্টিকসকে হারিয়ে শিরোপা জিতে নিয়েছে ওয়ারিয়র্স।

সিরিজের প্রথম ম্যাচে জয় পায় ওয়ারিয়র্স। কিন্তু পরের দুই ম্যাচ জিতে দারুণ ভাবে সিরিজে ফেরে সেল্টিকস। তাদের সামনে সম্ভাবনা জাগে ২০০৮ সালের পর শিরোপা জয়ের।

কিন্তু চতুর্থ ম্যাচে স্বরূপে ফেরেন ওয়ারিয়র্সের সেরা তারকা স্টেফ কারি। তার অনবদ্য পারফরম্যান্সে সিরিজে ২-২ সমতা ফেরায় ওয়ারিয়র্স। এরপর আর পেছনে ফিরে তাকাতে হয়নি তাদের।

টানা তিন ম্যাচ জিতে ৪-২ ব্যবধানে সিরিজ নিজেদের করে নেয় ওয়ারিয়র্স। শেষ ম্যাচেও জ্বলে ওঠেন কারি।

তৃতীয় কোয়ার্টার শেষে ম্যাচে ৭৬-৬৬ পয়েন্টে এগিয়ে ছিল ওয়ারিয়র্স। কিন্তু তৃতীয় কোয়ার্টারে ২৭-২২ পয়েন্টে তাদেরকে পেছনে ফেলে সেল্টিকস।

এরপরই ম্যাচ নিজের করে নেন স্টেফ কারি। আবারও প্রমাণ দেন কেন তিনি বিশ্বের অন্যতম সেরা বাস্কেটবল খেলোয়াড়। ফাইনালে ৩৪ পয়েন্ট স্কোর করেন কারি। রিবাউন্ড নেন ৭টি আর অ্যাসিস্ট করেন ৭টি।

ফাইনাল সিরিজের সেরা খেলোয়াড়ও নির্বাচিত হন ওয়ারিয়র্সের এ পয়েন্ট গার্ড। ফাইনালে তার ম্যাচ প্রতি গড় ছিল ৩১.২ পয়েন্ট। ৬টি রিবাউন্ড ও ৫টি অ্যাসিস্ট।

কারির নৈপূণ্যে গত ৮ বছরে ৪টি শিরোপা জিতেছে ওয়ারিয়র্স। গত দুই মৌসুম ইনজুরির সঙ্গে লড়াই করেছেন কারি। সবশেষে এবারের মৌসুমে চাঙ্গা হয়ে দলকে জেতালেন শিরোপা।

ফাইনালের সেরা খেলোয়াড়ের পুরস্কার পাওয়ার পর কারি সে স্মৃতিগুলোই রোমন্থন করেন। চোট কাটিয়ে আবারও সেরা ছন্দে ফিরতে পারবেন কিনা সেটা নিতে তার মনে ছিল শঙ্কা।

কারি বলেন, ‘গত ৩ বছর, প্লে-অফের শেষ দুই মাস আর সবশেষ ৪৮ ঘণ্টার প্রতিটা মুহূর্ত আমি খুব আবেগী হয়ে পড়েছি। মাঠ ও মাঠের বাইরে খুব কঠিন সময় পার করেছি। সবকিছুকে সঙ্গে নিয়েই স্বপ্নকে বাস্তবতায় পরিণত করার লড়াইয়ে আমরা সবাই নেমেছিলাম। যে কারণে আমার কাছে এ শিরোপাটা ভিন্নরকম।’

আরও পড়ুন:
কারির সামনে এখন শুধু অ্যালেন
যুক্তরাষ্ট্রের বাস্কেটবলের ইতিহাস বদলে দিলেন যে নারী
‘টাইম’ এর বর্ষসেরা লেব্রন জেমস
তৃতীয় ম্যাচ জিতে সিরিজে ফিরল হিট

মন্তব্য

খেলা
Serena ready to return with Wimbledon after one year

উইম্বলডন দিয়ে এক বছর পর ফিরতে চান সেরিনা

উইম্বলডন দিয়ে এক বছর পর ফিরতে চান সেরিনা টেনিস কোর্টে আমেরিকান তারকা সেরিনা উইলিয়ামস। ফাইল ছবি
দীর্ঘদিন না খেলার কারণে র‍্যাঙ্কিংয়েও পিছিয়ে পড়েছেন সেরিনা। ১৩ জুন প্রকাশিত র‍্যাঙ্কিংয়ে তিনি আছেন ১,২০৮ তম স্থানে। তাই উইম্বলডন খেলতে ওয়াইল্ড কার্ডের বিকল্প নেই তার।

প্রায় ১ বছর বছর কোর্টের বাইরে আমেরিকান তারকা সেরিনা উইলিয়ামস। চলতি বছর উইম্বলডন দিয়ে আবারও টেনিস কোর্টে ফেরার ঘোষণা দিয়েছেন তিনি।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে পোস্টের মাধ্যমে মঙ্গলবার রাতে এ ইঙ্গিত দেন ২৩টি গ্র্যান্ড স্ল্যাম জয়ী এ তারকা। ইনস্টাগ্রামে উইম্বলডনের ছবি পোস্ট করে তিনি লেখেন, ‘দেখা হবে সেখানে।’

৭ বারের উইম্বলডন জয়ী সেরিনা এক বছর আগে উইম্বলডন খেলতে যেয়েই চোট পান। ব্যাথা পেয়ে প্রথম রাউন্ডে টুর্নামেন্ট শেষ হয়ে যায় ৪০ বছর বয়সী এ তারকার।

দীর্ঘদিন না খেলার কারণে র‍্যাঙ্কিংয়েও পিছিয়ে পড়েছেন সেরিনা। ১৩ জুন প্রকাশিত র‍্যাঙ্কিংয়ে তিনি আছেন ১,২০৮ তম স্থানে। তাই উইম্বলডন খেলতে ওয়াইল্ড কার্ডের বিকল্প নেই তার।

সেরিনা সিঙ্গলস নাকি ডাবলসে খেলবেন তা এখনও নিশ্চিত করেননি। ২৭ জুন থেকে শুরু হচ্ছে উইম্বলডন।

আরও পড়ুন:
রাশিয়া ও বেলারুশের খেলোয়াড়দের নিষেধাজ্ঞার বিপক্ষে নাদাল
উইম্বলডনের সিদ্ধান্তের নিন্দা দুই শীর্ষ টেনিস সংস্থার
টাইব্রেকের বাধা টপকে কোয়ার্টার ফাইনালে নাদাল

মন্তব্য

খেলা
Boxers can become self sufficient through pro boxing Al Amin

প্রো বক্সিংয়ের মাধ্যমে বক্সাররা স্বাবলম্বী হতে পারবেন: আল আমিন

প্রো বক্সিংয়ের মাধ্যমে বক্সাররা স্বাবলম্বী হতে পারবেন: আল আমিন ফাইটনাইটে স্বর্ণ জয়ী বক্সার আল আমিন
পেশাদার বক্সিংয়ে অভিষেক হলেও অ্যামেচার বক্সিংও চালিয়ে যেতে চান আল আমিন। তার স্বপ্ন বৈশ্বিক ও এশীয় আসরে বাংলাদেশের হয়ে পদক জেতা।

গত মাসে ঢাকায় আয়োজিত আন্তর্জাতিক বক্সিং টুর্নামেন্ট ‘ফাইট নাইটে’ নেপালের ভারত চাঁদের বিপক্ষে ম্যাচ জেতেন বাংলাদেশের আল আমিন। দেশের সর্ববৃহৎ ঘরোয়া ক্রীড়া প্রতিযোগিতা বাংলাদেশে গেমসেও স্বর্ণ জিতেছিলেন রাজশাহীর এই বক্সার।

অভিজ্ঞ এ বক্সার খেলেছেন বাংলাদেশ আর্মি ও আনসার বাহিনীর হয়ে। বাংলাদেশ জাতীয় দলের হয়ে ক্যাম্প অনুশীলন করছেন আল আমিন। স্বর্ণজয়ী এ বক্সার মনে করেন দেশের বক্সিংয়ে উন্নতির জন্য দরকার নিয়মিত জাতীয়-আন্তর্জাতিক টুর্নামেন্ট।

দেশের অন্যতম সেরা এ বক্সার নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আমরা চেষ্টা করছি বাংলাদেশের বক্সিংটাকে আরও উপরে নেয়ার। প্রো বক্সিংয়ে ভালো করার জন্য আমারা আমাদের শতভাগ দিয়ে প্র্যাকটিস করে যাচ্ছি। কোন দেশে যখন প্রো বক্সিং চালু হয় তখন দেশের বক্সিংয়ের পরিবেশটাই পরিবর্তন হয়ে যায়।’

সাধারণত কোনো বক্সার অ্যামেচার থেকে পেশাদার জগতে ঢুকলে তাকে কোনো একটি প্রোমোশন কোম্পানিতে নাম লেখাতে হয়। সেই প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে বিভিন্ন বিষয়ে চুক্তি করার পর বক্সিং রিংয়ে নামতে পারেন ওই বক্সার।

দেশে ফাইটনাইটের মত প্রফেশনাল বক্সিং টুর্নামেন্টের প্রশংসা করে আল আমিন যোগ করেন, ‘প্রো বক্সিংয়ে টাকা আয়ের সুযোগ আছে। যা থেকে বক্সাররা স্বাবলম্বী হতে পারে। যেমনটা ক্রিকেট-ফুটবলে হয়ে থাকে। প্রো বক্সিং চালু হওয়াতে আমাদের জন্য ভালো হয়েছে।’

পেশাদার বক্সিংয়ে অভিষেক হলেও অ্যামেচার বক্সিংও চালিয়ে যেতে চান আল আমিন। তার স্বপ্ন বৈশ্বিক ও এশীয় আসরে বাংলাদেশের হয়ে পদক জেতা।

তিনি বলেন, ‘আমি প্রো এবং অ্যামেচার দুটাই খেলতে চাই দেশের জন্য। সুযোগ পেলে বাংলাদেশের হয়ে মেডেল জেতার চেষ্টা করব। তাছাড়া এশিয়ান টাইটেল ও ওয়ার্ল্ড বক্সিং কাউন্সিল ফাইট করার জন্য আমি রেডি হচ্ছি। এটাই আমার স্বপ্ন।

আরও পড়ুন:
‘সাফল্যের আনন্দে আঘাতের যন্ত্রণা ভুলে যাই’
আন্তর্জাতিক ফাইট নাইট বক্সিংয়ে আল আমিনের জয়
তিন দেশের বক্সার নিয়ে শুরু হচ্ছে ফাইট নাইট

মন্তব্য

খেলা
Prashant and Prince of Bangladesh in Indias Ultra Marathon

ভারতের আল্ট্রা ম্যারাথনে বাংলাদেশের প্রশান্ত ও শাহজাদা

ভারতের আল্ট্রা ম্যারাথনে বাংলাদেশের প্রশান্ত ও শাহজাদা আলট্রা ম্যারাথনে বাংলাদেশের দুই রানার শাহজাদা ও প্রশান্ত। ছবি: সংগৃহীত
৫০ কিলোমিটার শেষ করতে শাহজাদা আব্দুল আউয়াল শাহ এর সময় লেগেছে ৭ ঘন্টা ৪৩ মিনিট এবং প্রশান্ত রায়ের সময় লেগেছে ৮ ঘন্টা ৩০ মিনিট।

ভারতে শেষ হল টাটা আলট্রা ম্যারাথনের পঞ্চম আসর। প্রতিযোগিতায় প্রথমবারের মতো অংশ নেন দুই বাংলাদেশী রানার শাহজাদা আব্দুল আউয়াল শাহ ও প্রশান্ত রায়।

মহারাষ্ট্র রাজ্যের লোনাভলার পাহাড়ী অঞ্চলে অনুষ্ঠিত টাটা আলট্রা ম্যারাথন ২০২২ আসরে দুই আল্ট্রা রানার শাহজাদা ও প্রশান্ত দৌড় শেষ করতে সক্ষম হন।

১৫ মে রাত ১টায় লোনাভলার সুনিলস ওয়্যাক্স মিউজিয়াম থেকে ৫০ কিলোমিটারের এই দৌড় শুরু হয়। পাঁচ শতাধিক দৌড়বিদ এতে অংশ নেন। দূর্গম পাহাড়ে অসংখ্য চড়াই-উৎরাই ও কঠিন বাঁক ছিল ৫০ কিলোমিটারের রুটে।

প্রথম বাংলাদেশী হিসেবে ৫০ কিলোমিটার শেষ করতে শাহজাদা আব্দুল আউয়াল শাহ এর সময় লেগেছে ৭ ঘন্টা ৪৩ মিনিট এবং প্রশান্ত রায়ের সময় লেগেছে ৮ ঘন্টা ৩০ মিনিট। প্রতিযোগিতা শেষে মঞ্চে বাংলাদেশের দুই রানার জাতীয় পতাকা নিয়ে ছবিও তোলেন।

আরও পড়ুন:
বঙ্গবন্ধু ঢাকা ম্যারাথনে বিজয়ী যারা
বঙ্গবন্ধু ম্যারাথনে অংশ নিলেন দুই শতাধিক দৌড়বিদ
ঢাকা ম্যারাথনে সোমবার যেসব সড়ক বন্ধ

মন্তব্য

p
উপরে