টেস্টের আগে কান বন্ধ রাখছেন মুমিনুল

টেস্টের আগে কান বন্ধ রাখছেন মুমিনুল

হেড কোচ রাসেল ডমিঙ্গোর সঙ্গে আলোচনায় টেস্ট অধিনায়ক মুমিনুল হক। ছবি: বিসিবি

সমালোচনা আমলে না নিয়ে খেলার মাঠে নিজেদের সেরাটা দিতে চান মুমিনুল। তিনি মনে করেন সমালোচকদের মুখ যেহেতু বন্ধ করা ক্রিকেটারদের পক্ষে সম্ভব নয় তাই নিজের কান বন্ধ রাখাই সর্বোত্তম পন্থা।

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে টানা পাঁচ হারের পর থেকে সমালোচনা শুনে আসছেন জাতীয় দলের ক্রিকেটাররা। সমালোচনা শুনতে শুনতে মুশফিক-রিয়াদরা যে বিরক্ত সেটি বোঝা গেছে পাকিস্তান সিরিজে দলের সংবাদ সম্মেলনে।

জবাব মাঠে দিতে না পারলেও মুখে বেশ ভালো দিয়েছেন ক্রিকেটাররা। তাতে আরও বেড়েছে সমালোচনার তীব্রতা।

পাকিস্তানের কাছে ৩-০ ব্যবধানে ভরাডুবির পর টেস্ট সিরিজের আগে টেস্ট অধিনায়ক মুমিনুল হক পাল্টেছেন কৌশল।

সমালোচনা আমলে না নিয়ে খেলার মাঠে নিজেদের সেরাটা দিতে চান মুমিনুল। তিনি মনে করেন সমালোচকদের মুখ যেহেতু বন্ধ করা ক্রিকেটারদের পক্ষে সম্ভব নয় তাই নিজের কান বন্ধ রাখাই সর্বোত্তম পন্থা।

চট্টগ্রামে সিরিজের প্রথম টেস্টের আগের দিন সংবাদ সম্মেলনে এমনটাই বলেন টেস্ট অধিনায়ক।

মুমিনুল বলেন, ‘এখন সবাই নিজের কাজের ওপর ফোকাস করছে। বাইরের মানুষের মুখ আপনি বন্ধ করতে পারবেন না। আমার মনে হয় নিজের কানটা বন্ধ করতে হবে।’

আগেও বাংলাদেশ খারাপ ফলের বৃত্ত থেকে বেরিয়ে এসেছে। এবারও আসবে, এমনটা বিশ্বাস অধিনায়কের। তবে সেজন্য প্রয়োজনে পুরো মনোযোগ ক্রিকেট মাঠে দেয়া।

তিনি বলেন, ‘দেখেন বাংলাদেশ দল কিন্তু এমন না। এরকম আরও হয়েছে। আমরা সেখান থেকে বের হয়েছি। মানসিকভাবে সবাই এই সময়ে খুব দুর্বল হয়ে পড়ে। কেননা আমরা বাইরের কথা অনেক বেশি নেই। আমাদের চেষ্টা বাইরের কথায় কান না দিয়ে নিজের কাজে ফোকাস করা।’

আরও পড়ুন:
টেস্ট থেকে মাহমুদুল্লাহর অবসর
সেরা করদাতার সম্মাননা পেলেন মাহমুদুল্লাহ
নয় মাস পর সরগরম সাগরিকা
চট্টগ্রাম টেস্টে খেলছেন না সাকিব
টেস্ট খেলতে চট্টগ্রামে বাংলাদেশ-পাকিস্তান

শেয়ার করুন

মন্তব্য

আরও দুই বছর বাংলাদেশের সঙ্গে হেরাথ

আরও দুই বছর বাংলাদেশের সঙ্গে হেরাথ

ফাইল ছবি

২০২৩ সাল পর্যন্ত বাংলাদেশের স্পিন কোচের ভূমিকায় দেখা যাবে সাবেক এই লঙ্কান স্পিনারকে। শ্রীলংকা থেকে তিনি সরাসরি নিউজিল্যান্ডে দলের সঙ্গে যোগ দেবেন।

রঙ্গনা হেরাথের সঙ্গে দীর্ঘমেয়াদী চুক্তি করেছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। ২০২৩ সাল পর্যন্ত বাংলাদেশের স্পিন কোচের ভূমিকায় দেখা যাবে সাবেক এই লঙ্কান স্পিনারকে।

চলতি বছর জিম্বাবুয়ে সিরিজের সময় বাংলাদেশের বোলিং পরামর্শক হিসেবে নিয়োগ পান সাবেক এই স্পিনার। বাংলাদেশকে তিনি সার্ভিস দেন অস্ট্রেলিয়া ও নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে হোম সিরিজ ও বিশ্বকাপেও।

বিশ্বকাপের পর চুক্তি শেষ হওয়ায় তিনি পাকিস্তানের বিপক্ষে সিরিজে ছিলেন না। এক সিরিজ পর নিউজিল্যান্ড সফরে আবার যোগ দিতে যাচ্ছেন তিনি।

টাইগাররা নিউজিল্যান্ড যাচ্ছে বুধবার রাত একটায়। দুবাই হয়ে তারা পা রাখবে নিউজিল্যান্ডে।

দলের সঙ্গে বাকি কোচিং স্টাফর গেলেও যাচ্ছেন না হেরাথ। শ্রীলংকা থেকে তিনি সরাসরি নিউজিল্যান্ডে দলের সঙ্গে যোগ দেবেন।

আন্তর্জাতিক কোচিং ক্যারিয়ার বাংলাদেশকে দিয়ে শুরু করলেও হেরাথের অভিজ্ঞতা রয়েছে শ্রীলঙ্কার ঘরোয়া ক্রিকেটে কোচিংয়ের। স্থানীয় ক্রিকেট ক্লাব তামিল ইউনিয়ন ক্রিকেট ক্লাব ও লঙ্কা প্রিমিয়ার লিগে কোচিং করিয়েছিলেন সাবেক সফল এই স্পিনার।

আরও পড়ুন:
টেস্ট থেকে মাহমুদুল্লাহর অবসর
সেরা করদাতার সম্মাননা পেলেন মাহমুদুল্লাহ
নয় মাস পর সরগরম সাগরিকা
চট্টগ্রাম টেস্টে খেলছেন না সাকিব
টেস্ট খেলতে চট্টগ্রামে বাংলাদেশ-পাকিস্তান

শেয়ার করুন

ব্যাটিং অ্যাপ্রোচে সমস্যা দেখছেন না মুমিনুল

ব্যাটিং অ্যাপ্রোচে সমস্যা দেখছেন না মুমিনুল

আউট হওয়ার পর হতাশ মুমিনুল। ছবি: এএফপি

ব্যাটসম্যানদের ওই আক্রমণাত্মক ব্যাটিং অ্যাপ্রোচটাই সে সময়ের জন্য উপযুক্ত ছিল বলে মনে করছেন জাতীয় দলের টেস্ট দলপতি মুমিনুল হক। ম্যাচ শেষে সংবাদ সম্মেলনে এমনটাই জানান তিনি।

বৃষ্টিবিঘ্নিত ঢাকা টেস্টের প্রথম ইনিংসে পাকিস্তান যখন নিজেদের ইনিংস ঘোষণা করে সে সময় বাংলাদেশের কাছে ব্যাটিং করার জন্য সময় ছিল প্রায় দেড় দিন। বাংলাদেশ এই দেড় দিনেই যে দুই ইনিংস খেলে ফেলবে সেটি ধারণা করতে পারেননি ভক্তরা।

চতুর্থ দিন মধ্যাহ্ন বিরতির পর পাকিস্তান ইনিংস ঘোষণা করলে চা বিরতির কিছু সময় আগে ব্যাটিংয়ে নামে স্বাগতিক দল। সেদিন বাংলাদেশ খেলেছিল ২৬টি ওভার। এই ২৬ ওভারে বাংলাদেশ পেয়েছে ৭৬ রানের পুঁজি।

বিপত্তির জায়গাটি ছিল এই রান তুলতে সাত ব্যাটসম্যানকে ফিরতে হয়েছিল সাজঘরে। এক সাজিদ খানেই দুমড়ে মুচড়ে যায় টাইগারদের ব্যাটিং লাইন আপ। বড় ও বাজে শট খেলে স্বাগতিকদের শিবিরে চলছিল আশা যাওয়ার লড়াই।

পঞ্চম দিনের শুরুতেই স্কোরবোর্ডে ১১ রান যোগ করতেই অল আউট বাংলাদেশ। ফলো অনে পড়ে দ্বিতীয় ইনিংস শুরু করে সেখানেই দেখা যায় একই চিত্র।

ব্যর্থতার বেড়াজালে আটকে থেকেই সাজঘরে ফিরেছেন জাতীয় দলের টপ অর্ডাররা। মাঝে মুশফিক, লিটন, সাকিবের দায়িত্বশীল ব্যাটিংয়ে ড্রয়ের স্বপ্ন জেগে উঠলেও শেষ পর্যন্ত হারকে সঙ্গি করেই মাঠ ছাড়তে হয়েছে বাংলাদেশকে।

এই ৮৭ রানে অল আউট এবং দ্বিতীয় ইনিংসে টাইগারদের ধৈর্য্য হারা ব্যাটিং হয়েছে ম্যাচ শেষে প্রশ্নবিদ্ধ।

ব্যাটসম্যানদের ওই আক্রমণাত্মক ব্যাটিং অ্যাপ্রোচটাই সে সময়ের জন্য উপযুক্ত ছিল বলে মনে করছেন জাতীয় দলের টেস্ট দলপতি মুমিনুল হক। ম্যাচ শেষে সংবাদ সম্মেলনে এমনটাই জানান তিনি।

মুমিনুল বলেন, ‘ওই উইকেটে মুশফিক ভাই ও লিটনকে সমর্থন করব। কারণ তখন উইকেটে বল ঘুরছিল অনেক। মুশফিক ভাই স্কয়ার অফ দ্য উইকেটে মেরেছিল দুর্ভাগ্যবশত সংযোগ হয় নাই। আসলে এসব উইকেটে বেশি রক্ষণাত্মক খেললে কঠিন হয়ে যায়।’

হারের কারণ হিসেবে চতুর্থ দিনের ব্যাটিং ব্যর্থতাকে দুষছেন অধিনায়ক।

মুমিনুল বলেন, ‘খুবই বাজে দিন ছিল গতকাল। এক সেশনে ৭ উইকেট হারিয়েছি। অজুহাত দেওয়ার কিছু নেই। খুব বাজে ব্যাট করেছি। এ অবস্থা থেকে ফিরে আসা কঠিন।’

আরও পড়ুন:
টেস্ট থেকে মাহমুদুল্লাহর অবসর
সেরা করদাতার সম্মাননা পেলেন মাহমুদুল্লাহ
নয় মাস পর সরগরম সাগরিকা
চট্টগ্রাম টেস্টে খেলছেন না সাকিব
টেস্ট খেলতে চট্টগ্রামে বাংলাদেশ-পাকিস্তান

শেয়ার করুন

সাউথ আফ্রিকা সফর দিয়ে শুরু অধিনায়ক রোহিতের

সাউথ আফ্রিকা সফর দিয়ে শুরু অধিনায়ক রোহিতের

সাউথ আফ্রিকা সফরে ভারতের অধিনায়ক থাকছেন রোহিত শর্মা। ছবি: এএফপি

ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টি দলের পাশাপাশি টেস্ট দলের সহ-অধিনায়কের দায়িত্বও পেয়েছেন ৩৪ বছর বয়সী মুম্বাইয়ের এ ব্যাটসম্যান। আজিঙ্কা রাহানের বদলে কোহলির ডেপুটির দায়িত্ব এখন রোহিতের।

এ মাসের শেষে সাউথ আফ্রিকা সফরের ওয়ানডে ও টেস্ট সিরিজ খেলতে সাউথ আফ্রিকা যাচ্ছে ভারত। সিরিজে ওয়ানডে অধিনায়ক হিসেবে আনুষ্ঠানিক ভাবে রোহিত শর্মার নাম ঘোষণা করেছে ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড (বিসিসিআই)।

এক বিবৃতিতে বুধবার সন্ধ্যায় বিসিসিআই জানায় আনুষ্ঠানিকভাবে ভারতীয় ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টি দলের দায়িত্ব রোহিতের কাঁধে দেয়া হয়েছে।

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের আগে ভিরাট কোহলি জানিয়েছিলেন টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটের নেতৃত্ব ছাড়তে চান তিনি। ফলে তখন থেকেই গুঞ্জন ছিল বিশ্বকাপের পর রোহিতের অধিনায়কের দায়িত্ব পাওয়া নিয়ে।

ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টি দলের পাশাপাশি টেস্ট দলের সহ-অধিনায়কের দায়িত্বও পেয়েছেন ৩৪ বছর বয়সী মুম্বাইয়ের এ ব্যাটসম্যান। আজিঙ্কা রাহানের বদলে কোহলির ডেপুটির দায়িত্ব এখন রোহিতের।

সাউথ আফ্রিকা সিরিজের জন্য এখনও স্কোয়াড চূড়ান্ত না করলেও রোহিতের সঙ্গে ফিরছেন নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে সিরিজে না খেলা জাসপ্রিত বুমরাহ, মোহাম্মদ শামি ও রিশাভ পান্ট।

দল থেকে বাদ পড়েছেন আক্সার প্যাটেল, শুভমান গিল ও রভিন্দ্র জাডেজা। রভিচন্দ্রন আশউইনের সঙ্গে স্পিনার হিসেবে থাকছেন জয়ন্ত ইয়াদভ।

সাউথ আফ্রিকা-ভারতের প্রথম টেস্ট শুরু হচ্ছে ২৬ ডিসেম্বর। আর তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ শুরু হচ্ছে ১৯ জানুয়ারি।

আরও পড়ুন:
টেস্ট থেকে মাহমুদুল্লাহর অবসর
সেরা করদাতার সম্মাননা পেলেন মাহমুদুল্লাহ
নয় মাস পর সরগরম সাগরিকা
চট্টগ্রাম টেস্টে খেলছেন না সাকিব
টেস্ট খেলতে চট্টগ্রামে বাংলাদেশ-পাকিস্তান

শেয়ার করুন

সাকিব-রাকিবুলকে নিয়ে সিনেমা না হওয়ায় অবাক সৃজিত

সাকিব-রাকিবুলকে নিয়ে সিনেমা না হওয়ায় অবাক সৃজিত

ক্রিকেটার রাকিবুল হাসান (বাঁয়ে), পরিচালক সৃজিত মুখার্জি (মাঝে) ও সাকিব আল হাসান। ছবি কোলাজ: নিউজবাংলা

সৃজিত বলেন, ‘সাকিবকে নিয়ে এখনও কোনো সিনেমা হয়নি কেন সেটা নিয়েই আমি আশ্চর্য। এ রকম একজন অলরাউন্ডারকে নিয়ে সিনেমা বানানোর জন্য হুড়োহুড়ি লেগে যাবে ভেবেছিলাম কিন্তু এখনও বানানো হয়নি। আমার অবশ্যই আগ্রহ থাকবে তাকে নিয়ে কাজ করার জন্য।’

উন্নয়নকর্মী, অভিনেত্রী রাফিয়াত রশিদ মিথিলা ও তার স্বামী কলকাতার জনপ্রিয় চলচ্চিত্র নির্মাতা সৃজিত মুখার্জি এখন ঢাকায়। তারা বুধবার মিরপুরের শেরে বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে দেখতে গিয়েছিলেন বাংলাদেশ-পাকিস্তানের টেস্ট ক্রিকেট ম্যাচ।

সেখানে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলতে গিয়ে বাংলাদেশের ক্রিকেটের উত্থান, সাকিব আল হাসান ও রাকিবুল হাসানকে নিয়ে কেন এখনও সিনেমা নির্মিত হয়নি তা নিয়ে বিস্ময় প্রকাশ করেছেন।

সৃজিত বলেন, ‘সাকিবকে নিয়ে এখনও কোনো সিনেমা হয়নি কেন সেটা নিয়েই আমি আশ্চর্য। এ রকম একজন অলরাউন্ডারকে নিয়ে সিনেমা বানানোর জন্য হুড়োহুড়ি লেগে যাবে ভেবেছিলাম কিন্তু এখনও বানানো হয়নি। আমার অবশ্যই আগ্রহ থাকবে তাকে নিয়ে কাজ করার জন্য।’

তিনি আরও বলেন, ‘শুধু সাকিবই নয়, রাকিবুল হাসানের যে ঘটনা, ব্যাটে জয় বাংলা লিখে প্রতিবাদ ও মুক্তিযুদ্ধের সময় ক্রিকেট নিয়ে যে ঘটনা, সেটা নিয়েও কাজ করার ইচ্ছা আছে আমার।’

সাকিব-রাকিবুলকে নিয়ে সিনেমা না হওয়ায় অবাক সৃজিত
স্টেডিয়ামে বাংলাদেশ-পাকিস্তানের টেস্ট খেলা দেখতে মিথিলা-সৃজিত। ছবি: সংগৃহীত

তবে এ নিয়ে কারও সঙ্গে কোনো প্রকার কথা হয়নি সৃজিতের। সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তর দিতে গিয়ে নিজের ইচ্ছার কথা জানিয়েছেন তিনি।

বাংলাদেশে ক্রিকেটের যে উত্থান সেটাও রূপকথার চেয়ে কম নয় বলে মনে করেন সৃজিত।

ক্রিকেটপাগল সৃজিত সব সময় খেলা দেখেন। কীভাবে যেন সিনেমায় চলে এসেছেন, ক্রিকেটে যাওয়ার ইচ্ছা ছিল পরিচালকের। তার প্রথম ১০টি পছন্দের মধ্যে সিনেমা থাকবে না বলেও জানান তিনি।

নিজের দেখা অলরাউন্ডারদের মধ্যে সাউথ আফ্রিকার জ্যাক ক্যালিস ও বাংলাদেশের সাকিব আল হাসানকে এগিয়ে রাখতে চান সৃজিত মুখার্জি।

সৃজিত খেলা পছন্দ করলেও মিথিলা বেশি একটা খেলা পছন্দ করেন না। বাংলাদেশের খেলা হলে কিছু সময় হয়তো সেটা দেখেন কিন্তু নিজেকে ক্রিকেট ভক্ত বলতে নারাজ এ অভিনেত্রী।

আরও পড়ুন:
টেস্ট থেকে মাহমুদুল্লাহর অবসর
সেরা করদাতার সম্মাননা পেলেন মাহমুদুল্লাহ
নয় মাস পর সরগরম সাগরিকা
চট্টগ্রাম টেস্টে খেলছেন না সাকিব
টেস্ট খেলতে চট্টগ্রামে বাংলাদেশ-পাকিস্তান

শেয়ার করুন

রাতে নিউজিল্যান্ড যাচ্ছেন মুমিনুলরা

রাতে নিউজিল্যান্ড যাচ্ছেন মুমিনুলরা

ফাইল ছবি

সিরিজে অংশ নিতে বুধবার রাত একটায় দেশ ছাড়ছেন মুমিনুল-লিটনরা। দুবাই হয়ে নিউজিল্যান্ড যাচ্ছে বাংলাদেশ জাতীয় দল।

নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে জানুয়ারিতে দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজ খেলবে বাংলাদেশ। সিরিজে অংশ নিতে বুধবার রাত একটায় দেশ ছাড়ছেন মুমিনুল-লিটনরা।

দুবাই হয়ে নিউজিল্যান্ড যাচ্ছে বাংলাদেশ জাতীয় দল।

নিউজিল্যান্ড পৌঁছে ১৪ দিনের বাধ্যতামূলক রুম কোয়ারেন্টিনে থাকার কথা থাকলেও সেটিতে শিথিলতা এনেছে দেশটির ক্রিকেট বোর্ড। ১৪ দিনের জায়গায় টাইগারদের কোয়ারেন্টিনে থাকতে হবে তিন থেকে চার দিন।

মাউন্ট মঙ্গানুইয়ের বে ওভালে ১ জানুয়ারি শুরু হচ্ছে প্রথম টেস্ট। দ্বিতীয় টেস্ট শুরু হবে ক্রাইস্টচার্চের হ্যাগলি ওভালে ৯ জানুয়ারি থেকে।

নিউজিল্যান্ডে পৌঁছে কোয়ারেন্টিন শেষ করে আন্তস্কোয়াড ও নিউজিল্যান্ডে-এ দলের বিপক্ষে প্রস্তুতি ম্যাচ খেলবে বাংলাদেশ।

সিরিজের জন্য ১৮ সদস্যের দল ঘোষণা করেছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড বিসিবি। ব্ল্যাকক্যাপদের বিপক্ষের সেই দলের পাকিস্তান সিরিজ থেকে বাদ পড়েছেন সাইফ হাসান ও রেজাউর রহমান রাজা।

পাশাপাশি ইনজুরি কাটিয়ে ফেরা তাসকিন আহমেদকে দেখা যাবে এ সফরে।

সিরিজে ডাক পেলেও ব্যক্তিগত কারণে সিরিজ থেকে ছুটি নিয়েছেন সাকিব আল হাসান। তার বদলে ব্যাটসম্যান ফজলে রাব্বিকে দলে অন্তর্ভুক্ত করেছে টাইগাররা।

একই সঙ্গে দলে রাখা হয়েছে পাকিস্তান সিরিজে প্রথম ডাক পাওয়া ইয়াসির রাব্বি, মাহমুদুল হাসান জয় ও নাঈম শেখকে।

বাংলাদেশ দল: মুমিনুল হক, সাদমান ইসলাম, নাজমুল হোসেন শান্ত, মুশফিকুর রহিম, লিটন দাস, নুরুল হাসান সোহান, ইয়াসির রাব্বি, মেহেদি হাসান মিরাজ, তাইজুল ইসলাম, তাসকিন আহমেদ, আবু জায়েদ রাহি, এবাদত হোসেন, শরিফুল ইসলাম, খালেদ আহমেদ, শহীদুল ইসলাম, মাহমুদুল হাসান জয়, ফজলে রাব্বি ও নাঈম শেখ।

আরও পড়ুন:
টেস্ট থেকে মাহমুদুল্লাহর অবসর
সেরা করদাতার সম্মাননা পেলেন মাহমুদুল্লাহ
নয় মাস পর সরগরম সাগরিকা
চট্টগ্রাম টেস্টে খেলছেন না সাকিব
টেস্ট খেলতে চট্টগ্রামে বাংলাদেশ-পাকিস্তান

শেয়ার করুন

লড়াই করেও বড় হার এড়াতে পারল না বাংলাদেশ

লড়াই করেও বড় হার এড়াতে পারল না বাংলাদেশ

সাকিবকে ফিরিয়ে পাকিস্তানি ক্রিকেটারদের উল্লাস। ছবি: এএফপি

শেষ পর্যন্ত ২০৫ রানে থামে বাংলাদেশের ইনিংসের চাকা। আর পাকিস্তান সেই সঙ্গে পেয়ে যায় ইনিংস ও ৮ রানের বড় জয়। সাকিব দলের পক্ষে করেন সর্বোচ্চ ৬৩।

হারে শুরু, হারে শেষ। টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে বাংলাদেশের হারের ধারা অব্যাহত থাকল পাকিস্তান সিরিজে এসেও। টি-টোয়েন্টি সিরিজের পর এবার বাংলাদেশকে ক্লিন সুইপ হতে হয়েছে টেস্ট সিরিজে।

সিরিজের দ্বিতীয় ও শেষ টেস্টে ইনিংস ও ৮ রানে পরাজিত হয়েছে মুমিনুল বাহিনী। আর এর ফলে টানা ১০টি ম্যাচে জয়ের দেখা না পেয়েই মাঠ ছাড়তে হলো ডমিঙ্গো শিষ্যদের।

শেরেবাংলার উইকেটকে ধরা হয় স্পিনারদের স্বর্গভূমি। কিন্তু পাকিস্তানের বিপক্ষে সিরিজের দ্বিতীয় টেস্টে এসে সব বাংলাদেশের বেলায় যেন বদলে গেল ভোজবাজির মতো।

যে উইকেটে টাইগার স্পিনারদের ধারহীন আক্রমণ ছিল, সে উইকেটেই পাকিস্তানের স্পিনারদের ভয়াল থাবা দেখলেন লিটন-মুশফিকরা।

এক সাজিদ খানেই ধসে পড়ল স্বাগতিকদের ব্যাটিং লাইনআপ। একাই ৮ উইকেট নিয়ে প্রথম ইনিংসে ফলোঅনে ফেলেন বাংলাদেশকে।

প্রথম ইনিংসে পাকিস্তানের করা ৩০০ রানের জবাবে ব্যাট করতে নেমে চতুর্থ দিনে বাংলাদেশ হারায় ৭ উইকেট।

পঞ্চম দিনের প্রথম আধা ঘণ্টার ভেতর পাকিস্তানি বোলারদের সামলাতে না পেরে ৮৭ রানে শেষ হয় স্বাগতিকদের প্রথম ইনিংস। বাকি লড়াই ছিল ইনিংস পরাজয় এড়ানোর ও ড্রয়ের।

প্রথম ইনিংসে বাংলাদেশের সর্বনাশের শুরু হয় সাজিদ খানের হাত ধরে। আর সাকিবের উইকেট পতনের মধ্য দিয়ে সেই সাজিদ খানেই শেষ হয় সম্ভাবনা।

প্রথম ইনিংসে স্পিন বিষে নীল হয়ে স্বাগতিকরা দ্বিতীয় ইনিংসের শুরুতে নাজেহাল হয় পাকিস্তানের পেস তোপের সামনে। ২৫ রান তুলতেই সাজঘরে ফিরে যান জয়, সাদমান, শান্ত ও মুমিনুল।

আর এর ফলে প্রথম সেশনে দুই ইনিংস মিলিয়ে ৭ উইকেট হারিয়ে বসে বাংলাদেশ।

একের পর এক উইকেট পতনে দিশা হারায় বাংলাদেশ। এমন সময় দায়িত্বশীল ব্যাটিংয়ে ৭৩ রানের জুটিতে প্রতিরোধ গড়েন মুশফিকুর রহিম ও লিটন দাস ।

মধ্যাহ্ন বিরতি থেকে ফিরে প্রতিরোধ গড়ে তোলা জুটি ভাঙে সাজিদের কল্যাণে। ৮১ বলে ৪৫ করা লিটনকে ফিরিয়ে ব্রেক থ্রু দেন এ স্পিনার।

এরপর মুশফিকুর রহিমকে সঙ্গে নিয়ে রানের গতি বাড়িয়ে দেন সাকিব আল হাসান। মুশফিকের সঙ্গে ষষ্ঠ উইকেটে ৪৯ রানের জুটি গড়ে পরিস্থিতি সামাল দেন বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার। ইনিংস ব্যবধানে হার এড়ানোর কাছাকাছি নিয়ে যান দলকে।

রানের গতি বাড়াতে গিয়ে নিজের উইকেট বিলিয়ে দিয়ে আসেন মুশফিকুর রহিম।

চা বিরতির ঠিক আগ মুহূর্তে রান আউটের শিকার হয়ে মাঠ ছাড়েন তিনি। সাজঘরে ফেরার আগে তার ব্যাট থেকে আসে ৪৮ রানের ইনিংস। সাকিব-মুশির ৪৯ রানের জুটিতে ভর করে পাকিস্তানের চেয়ে ৬৬ রানে পিছিয়ে থেকে চা বিরতিতে যায় বাংলাদেশ।

উইকেটের এক প্রান্ত আগলে ধরে পাকিস্তানের বোলিং আক্রমণের বিপক্ষে বাকি সময়ে প্রায় একাই লড়েন সাকিব আল হাসান। দেখেশুনে খেলার পাশাপাশি এ অলরাউন্ডার পূর্ণ করেন তার ২৬তম টেস্ট ফিফটি।

ফিফটির সঙ্গে সাকিব পূর্ণ করেন টেস্ট ক্রিকেটে চার হাজার রান। একই সঙ্গে চার হাজার রান ও ২০০ উইকেটের ডাবল অর্জন করা ষষ্ঠ ক্রিকেটার বনে যান তিনি।

তবে এই অর্জনে তিনিই দ্রুততম। সাকিব এই ডাবল অর্জন করেন ৫৯ টেস্টে।

মিরাজের সঙ্গে জুটি বেঁধে সাকিব দলকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছিলেন ড্রয়ের দিকে। কিন্তু বেরসিকের মতো বাবর আজম বাধা দেন সেখানে। দুজনের গড়া ৫১ রানের জুটি ভাঙেন মিরাজকে ফিরিয়ে।

পরের ওভারে সাজিদের শিকার হয়ে মাঠ ছাড়তে হয় বাংলাদেশের শেষ ভরসা সাকিবকে। দুর্দান্ত এক ডেলিভারিতে ৬৩ রান করা সাকিবকে ফিরিয়ে সাজিদ অনেকটা নিশ্চিত করেন স্বাগতিকদের পরাজয়।

এরপর আর প্রভাব রাখতে পারেননি জাতীয় দলের টেইল এন্ডাররা। কমিয়েছেন শুধু পরাজয়ের ব্যবধান।

শেষ পর্যন্ত ২০৫ রানে থামে বাংলাদেশের ইনিংসের চাকা। আর পাকিস্তান সেই সঙ্গে পেয়ে যায় ইনিংস ও ৮ রানের বড় জয়।

এর আগে ঢাকা টেস্টের শুরু দিন থেকেই শেরেবাংলায় ছিল বৃষ্টিবাধা। প্রথম দিন আলোক-স্বল্পতায় ৩৩ ওভার খেলা কম হলেও দ্বিতীয় দিন খেলা হয়েছিল মোটের ওপর সাড়ে ছয় ওভার।

আর তৃতীয় দিন পুরোটাই গিয়েছিল বৃষ্টির পেটে। চতুর্থ দিন দেড় ঘণ্টা দেরিতে খেলা শুরু হয়। শুরুতে দ্রুত ২ উইকেট তুলে নিলেও পাকিস্তানের রানের চাকার গতি কমাতে পারছিলেন না বাংলাদেশি বোলাররা।

আর দায়িত্বহীন বোলিংয়ের কারণে বাংলাদেশের সামনে ৩০০ রানের পুঁজি দাঁড় করায় পাকিস্তান।

দুই ইনিংস মিলিয়ে ১২ উইকেট নিয়ে ম্যাচসেরা নির্বাচিত হন সাজিদ খান।

আরও পড়ুন:
টেস্ট থেকে মাহমুদুল্লাহর অবসর
সেরা করদাতার সম্মাননা পেলেন মাহমুদুল্লাহ
নয় মাস পর সরগরম সাগরিকা
চট্টগ্রাম টেস্টে খেলছেন না সাকিব
টেস্ট খেলতে চট্টগ্রামে বাংলাদেশ-পাকিস্তান

শেয়ার করুন

সাকিবের বিদায়ে ইনিংস হারের মুখে বাংলাদেশ

সাকিবের বিদায়ে ইনিংস হারের মুখে বাংলাদেশ

সাকিবকে ফিরিয়ে উচ্ছ্বসিত পাকিস্তান দল। ছবি: এএফপি

সাজিদের বলে স্টাম্প হারিয়ে ৬৩ রান করে সাজঘরে ফিরতে হয় সাকিবকে। আর তাতে এক প্রকারে নিশ্চিত হয়ে যায় বাংলাদেশের পরাজয়।

সাকিব-মিরাজ জুটি ঢাকা টেস্টে ড্রয়ের সম্ভাবনাকে বাংলাদেশের হাতের মুঠোয় এনে দিচ্ছিল। কিন্তু বাবর-সাজিদের দুই আঘাতে আরও একবার স্বপ্নভঙ্গের কাছে বাংলাদেশ।

দলীয় ১৯৮ রানে বাবরের শিকার হয়ে সাজঘরে ফিরতে হয় মেহেদি মিরাজকে। মাঠ ছাড়ার আগে সাকিবের সঙ্গে মিলে গড়েন ৫১ রানের জুটি।

পরের ওভারের পঞ্চম বলে বাংলাদেশ শিবিরে ফের আঘাত হানেন সাজিদ খান। এবারে তার শিকার বাংলাদেশকে ড্রয়ের সুবাস এনে দিতে থাকা সাকিব আল হাসান।

সাজিদের বলে স্টাম্প হারিয়ে ৬৩ রান করে সাজঘরে ফিরতে হয় সাকিবকে। আর তাতে এক প্রকারে নিশ্চিত হয়ে যায় বাংলাদেশের পরাজয়।

এর আগে চার উইকেট হারিয়ে মধ্যাহ্ন বিরতিতে গিয়েছিল বাংলাদেশ। বিরতি থেকে ফিরে সাজিদের শিকার হয়ে মাঠ ছাড়েন লিটন। আর চা-বিরতির ঠিক আগ মুহূর্তে দুর্ভাগ্যজনকভাবে রান আউটের শিকার হন মুশফিকুর রহিম।

চা-বিরতিতে যাওয়ার আগ পর্যন্ত বাংলাদেশের সংগ্রহ ছিল ছয় উইকেটে ১৪৭ রান। ৫৬ বলে ২৫ করে অপরাজিত রয়েছেন সাকিব আল হাসান।

ঢাকা টেস্টে বাংলাদেশের প্রথম ইনিংসের ব্যাটিং বিপর্যয় সঙ্গী হয়েছিল দ্বিতীয় ইনিংসেও। দিনের প্রথম সেশনে দ্বিতীয় ইনিংস শুরু করে দলীয় রান ২৫ তুলতেই স্বাগতিকরা হারায় চার উইকেট।

এমন বিপর্যয়ের সময় ৭৩ রানের জুটি গড়ে পরিস্থিতি সামাল দিয়েছিলেন লিটন কুমার দাস ও মুশফিকুর রহিম। মধ্যাহ্ন বিরতির আগে দুজন মিলে প্রতিরোধ গড়ে স্বপ্ন দেখাচ্ছিলেন ম্যাচে টিকে থাকার।

কিন্তু সাজিদ খানকে পুল করতে গিয়ে শর্টে ফাওয়াদ আলমের হাতে বন্দি হয়ে ভাঙে সেই স্বপ্ন। ৮১ বলে ৪৫ রান করে সাজঘরে ফিরতে হয় বাঁহাতি এই ব্যাটসম্যানকে।

বাংলাদেশের দলীয় সংগ্রহ সে সময় ৯৮। এরপর সাকিব আল হাসান উইকেটে এসে বাড়িয়ে দেন রানের গতি। সঙ্গী মুশফিকও কম যাচ্ছিলেন না। একের পর এক বাউন্ডারির মাধ্যমে কমিয়ে আনতে থাকেন ফলোঅনের ব্যবধান।

বেশিক্ষণ টেনে নিয়ে যেতে পারেননি দলকে। রানের গতি বাড়াতে গিয়ে দুর্ভাগ্যবশত রান আউট হয়ে সাজঘরে ফিরতে হয় মুশফিকুর রহিমকে। মাঠ ছাড়ার আগে তার ব্যাট থেকে আসে ৪৮ রান।

আরও পড়ুন:
টেস্ট থেকে মাহমুদুল্লাহর অবসর
সেরা করদাতার সম্মাননা পেলেন মাহমুদুল্লাহ
নয় মাস পর সরগরম সাগরিকা
চট্টগ্রাম টেস্টে খেলছেন না সাকিব
টেস্ট খেলতে চট্টগ্রামে বাংলাদেশ-পাকিস্তান

শেয়ার করুন