ফুটবলকে বিদায় জানাচ্ছেন আগুয়েরো

ফুটবলকে বিদায় জানাচ্ছেন আগুয়েরো

বার্সেলোনার জার্সিতে সার্হিও আগুয়েরো। ছবি: এএফপি

আন্তর্জাতিক ফুটবল থেকে অবসর নিতে চলেছেন আগুয়েরো। শিগগির আসছে আনুষ্ঠানিক ঘোষণা। বিষয়টি শনিবার টুইট করে জানান স্পেনের প্রসিদ্ধ ক্রীড়া সাংবাদিক জেরার্ড রোমেরো।

গত অক্টোবরের শেষ সপ্তাহে হৃদযন্ত্রের সমস্যা নিয়ে বার্সেলোনার হয়ে খেলার সময় মাঠ থেকে তাকে হাসপাতালে যেতে হয়। তিন সপ্তাহের জন্য মাঠের বাইরে ছিটকে যেতে হয়।

মাঠে ফেরার বিষয়টি নিজে টুইট করে জানান। কিন্তু খেলোয়াড় হিসেবে প্রতিযোগিতামূলক ম্যাচে হয়তো আর ফেরা হচ্ছে না সার্হিও আগুয়েরোর।

হাসপাতালের পরীক্ষায় তার হৃৎপিণ্ডে সমস্যা দেখা দেয়, যা ফুটবল খেললে আরো জটিল আকার ধারণ করতে পারে।

যে কারণে একেবারে বুটজোড়া তুলে রাখার সিদ্ধান্ত নিচ্ছেন বার্সেলোনার এ আর্জেন্টাইন স্ট্রাইকার। আন্তর্জাতিক ও ক্লাব ফুটবল থেকে অবসর নিতে চলেছেন তিনি।

শিগগির আসছে আনুষ্ঠানিক ঘোষণা। বিষয়টি শনিবার টুইট করে জানান স্পেনের প্রসিদ্ধ ক্রীড়া সাংবাদিক জেরার্ড রোমেরো।

এমন খবরে শুধু বার্সেলোনা নয়, পুরো ফুটবল বিশ্বের ভক্তদের মনে নাড়া দিবে তা বলার অপেক্ষা রাখে না।

চলতি মৌসুমের শুরুতে বিনা ট্রান্সফার ফিতে ম্যানচেস্টার সিটি ছেড়ে বার্সায় নাম লেখান আগুয়েরো। চোট সঙ্গে করে স্পেনে এসেছিলেন তিনি। মাংসপেশির ওই চোটে প্রথম দুই মাস মাঠে নামা হয়নি তার।

চোট সেরে বার্সেলোনার জার্সিতে অভিষেক করেন আগুয়েরো। সবমিলে ৫ ম্যাচে অংশ নিয়ে একটি গোল করেন। সেই একমাত্র গোলটি আসে এল ক্লাসিকোতে। রিয়াল মাদ্রিদের বিপক্ষে।

স্পেনে নতুন নয় আগুয়েরোর জন্য। ২০১১ সালে ম্যান সিটিতে যোগ দেয়ার আগে পাঁচ বছর আতলেতিকো মাদ্রিদের হয়ে তিন বছর খেলেন তিনি। সে পাঁচ বছরে করেন ১০০ গোল ও ৪৬ অ্যাসিস্ট।

সেরা সময়টা আগুয়েরো কাটান ইংল্যান্ডে। ম্যানচেস্টার সিটির জার্সিতে সবচেয়ে বেশি গোলের রেকর্ড তার দখলে। ৩৯০ ম্যাচে ২৬০ গোল করেছেন তিনি। জিতেছেন লিগ শিরোপা। গেল মৌসুমে চ্যাম্পিয়নস লিগে রানার্স আপ হন।

তা ছাড়া জাতীয় দল আর্জেন্টিনার জার্সিতে বিশ্বকাপ ছাড়া সব জিতেছেন তিনি। যুব বিশ্বকাপ, অলিম্পিক আর কোপা আমেরিকার শিরোপা জিতেছেন আগুয়েরো। ছিলেন ২০১৪ সালের বিশ্বকাপ রানার আপ দলের সদস্য।

আরও পড়ুন:
পাঁচ বছর পর বার্সায় দানি আলভেস
কোচ চাভির আনুষ্ঠানিক যাত্রা শুরু
ইনজুরির কারণে স্পেন দলে নেই ফাতি

শেয়ার করুন

মন্তব্য

তারকাসমৃদ্ধ সাইফকে ভয় ধরিয়ে দিয়েছিল সেনাবাহিনী

তারকাসমৃদ্ধ সাইফকে ভয় ধরিয়ে দিয়েছিল সেনাবাহিনী

সাইফের বিপক্ষে গোলের পর সেনাবাহিনীর উল্লাস। ছবি: বাফুফে

পেনাল্টি ও আত্মঘাতীর বদান্যতায় কমলাপুরের বীরশ্রেষ্ঠ মোস্তফা কামাল স্টেডিয়ামে সেনাবাহিনীকে ২-১ ব্যবধানে হারায় জামাল ভূঁইয়াদের দল।

কাগজে-কলমে অন্যতম ফেবারিট দল সাইফ স্পোর্টিং ক্লাব। দেশি-বিদেশি অভিজ্ঞ ফুটবলারের সঙ্গে দলের দায়িত্বে টেকটিক্যালি উঁচু মানের আর্জেন্টাইন কোচ। ডিয়েগো ক্রুসিয়ানির অধীনে প্রথম মিশন স্বাধীনতা কাপ। তবে টুর্নামেন্টের প্রথম ম্যাচটাই কঠিন করে জয় পেতে হয়েছে সাইফের।

তুলনামূলক অনেক সহজ প্রতিপক্ষ সার্ভিসেস দল বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর বিপক্ষে কষ্টার্জিত জয় পেয়েছে সাইফ।

পেনাল্টি ও আত্মঘাতীর বদান্যতায় কমলাপুরের বীরশ্রেষ্ঠ মোস্তফা কামাল স্টেডিয়ামে সেনাবাহিনীকে ২-১ ব্যবধানে হারায় জামাল ভূঁইয়াদের দল।

তবে জয়টা এতো সহজে আসেনি সাইফের। ম্যাচে আধিপত্যের ছাপ থাকলেও আক্রমণে তেমন ধার ছিল না ক্রুসিয়ানির দলের। উল্টো অঘটন ঘটিয়ে দিতে পারত সেনাবাহিনী। বলা যায় সাইফের বুকে কাঁপন ধরিয়ে দিয়েছিলেন মেহেদী-ইমনরা।

কোনো বিদেশি ফুটবলার ছাড়াই যে লড়াইটা তারা করেছে তা নিঃসন্দেহে বাহবা পাওয়ার দাবিদার।

সাইফকে চমকে দিয়ে ম্যাচের প্রথম গোলটা করে ফেলে তারাই। মেহেদীর পেনাল্টিতে লিড নেয় সেনাবাহিনী। এই গোলের অস্বস্তি নিয়ে বিরতিতে যায় সাইফ।

দ্বিতীয়ার্ধে ফিরে ম্যাচের ৪৯ মিনিটে সমতায় ফেরে সাইফ। পেনাল্টিতে গোল করেন সাইফের ফরোয়ার্ড এমেকা।

ম্যাচের ৮১ মিনিটে এসে প্রথমবার লিড পায় সাইফ। তবে সেটাও সেনাবাহিনীর আত্মঘাতী গোলে! ডান প্রান্ত থেকে সাইফের ডিফেন্ডার নাসিরুলের ক্রসটা হেড করে ক্লিয়ার করতে গিয়ে নিজেদের জালেই জড়িয়ে দেন ডিফেন্ডার মেহেদী। তার গোলে সেনাবাহিনীর স্বপ্নের শুরু, তার গোলেই যেন স্বপ্নভঙ!

কষ্টার্জিত জয়ের স্বস্তি নিয়ে শেষ পর্যন্ত মাঠ ছাড়ে সাইফ স্পোর্টিং।

আরও পড়ুন:
পাঁচ বছর পর বার্সায় দানি আলভেস
কোচ চাভির আনুষ্ঠানিক যাত্রা শুরু
ইনজুরির কারণে স্পেন দলে নেই ফাতি

শেয়ার করুন

রামোসের অভিষেকে লাতিন জাদুতে পিএসজির জয়

রামোসের অভিষেকে লাতিন জাদুতে পিএসজির জয়

সেইন্ট এতিয়েনের বিপক্ষে গোলের পর রামোস-মেসিদের উদযাপন। ছবি: টুইটার

লিওনেল মেসির হ্যাটট্রিক অ্যাসিস্টের সঙ্গে মারকিনিয়োসের জোড়া ও দি মারিয়ার এক গোলে পিএসজির জয় আসে ব্রাজিল-আর্জেন্টিনার মেলবন্ধনে। লিগ ওয়ানে অ্যাওয়ে ম্যাচে সেইন্ট এতিয়েনের বিপক্ষে ৩-১ গোল ব্যবধানে জয় নিয়ে মাঠ ছেড়েছে পিএসজি।

দীর্ঘ ইনজুরি কাটিয়ে অবশেষে প্যারিস সেইন্ট জার্মেইয়ের (পিএসজি) জার্সিতে লিগ ওয়ানে অভিষেক হলো রিয়াল মাদ্রিদের সাবেক অধিনায়ক সার্হিও রামোসের। এমন দিনে লাতিন জাদুতে জয় তুলে নিয়েছে পিএসজি।

লিওনেল মেসির হ্যাটট্রিক অ্যাসিস্টের সঙ্গে ব্রাজিলিয়ান ডিফেন্ডার মারকিনিয়োসের জোড়া ও আর্জেন্টাইন ফরোয়ার্ড আনহেল দি মারিয়ার এক গোলে পিএসজির জয় আসে ব্রাজিল-আর্জেন্টিনার মেলবন্ধনে।

লিগ ওয়ানে অ্যাওয়ে ম্যাচে সেইন্ট এতিয়েনের বিপক্ষে ৩-১ গোল ব্যবধানে জয় নিয়ে মাঠ ছেড়েছে পিএসজি।

ঘরের মাঠে তারকায় ভরা পিএসজিকে অবশ্য বেশ ভালভাবে আতিথ্য দেয় সেইন্ট এতিয়েন। ডেনিস বোউয়াঙ্গার গোলে ম্যাচের ২৩ মিনিটে লিড নেয় তারা।

লিড নেয়ার স্বস্তি যখন গ্যালারিতে তখন ম্যাচের ৪৫ মিনিটে টিমোথি কোলোইয়েসাক ফাউল করে লাল কার্ড পেলে ১০ জনের দলে পরিণত হয় স্বাগতিকরা।

সুযোগটা কাজে লাগায় পিএসজি। প্রথমার্ধের অতিরিক্ত সময়ে মেসির পাস থেকে গোল করে দলকে সমতায় ফেরান অধিনায়ক মারকিনিয়োস।

বিরতি থেকে ফিরে লাগাতার আক্রমণ করে যায় পিএসজি। তবে লিড পেতে বেশ কষ্ট করতে হয়েছে মরিসিও পচেত্তিনোর দলকে।

ম্যাচের ৭৯ মিনিটে কাঙ্ক্ষিত গোল পায় পিএসজি। মেসির দেয়া পাসে অনেকটা ফাঁকা জায়গা থেকে ব্যবধানটা ২-১ করে ফেলেন দি মারিয়া।

এরপর পিএসজির জন্য ছিল খারাপ খবর। এতিয়েনের ডিফেন্ডারের সঙ্গে বল দখলের লড়াইয়ে ফাউলের শিকার হন নেইমার। আঘাত এতটাই গুরুতর ছিল যে তাকে স্ট্রেচারে করে মাঠের বাইরে নিয়ে যেতে হয়। তবে সেটা ম্যাচ ভাগ্যে কোনো বদল আনেনি।

নির্ধারিত ৯০ মিনিটের পর ইনজুরি টাইমে ব্যবধান আরও বাড়ায় পিএসজি। বাম প্রান্ত থেকে মেসির তৃতীয় অ্যাসিস্ট যখন শূন্যে ভাসছে তখন হেডে বল জালে জড়িয়ে নিজের দ্বিতীয় গোল আদায় করে নেন মারকিনিয়োস।

স্বস্তির জয় পেলেও নেইমার চোট নিয়ে শঙ্কায় থাকবে পিএসজি।

এ জয়ে ১৫ ম্যাচে ৪০ পয়েন্ট ঝুলিতে রেখে লিগের টেবিলের শীর্ষস্থান আরও পাকাপোক্ত করল প্যারিসিয়ানরা। দুইয়ে থাকা নিসের থেকে ১৪ পয়েন্ট এগিয়ে আছে মেসিদের দল।

আরও পড়ুন:
পাঁচ বছর পর বার্সায় দানি আলভেস
কোচ চাভির আনুষ্ঠানিক যাত্রা শুরু
ইনজুরির কারণে স্পেন দলে নেই ফাতি

শেয়ার করুন

রোমাঞ্চকর জয়ে স্বাধীনতা কাপ শুরু মোহামেডানের

রোমাঞ্চকর জয়ে স্বাধীনতা কাপ শুরু মোহামেডানের

শাহেদের গোলের পর মোহামেডানের উল্লাস। ছবি: বাফুফে

টানটান উত্তেজনার ম্যাচ জিতে নেয় মোহামেডান। রোববার বীরশ্রেষ্ঠ মোস্তফা কামাল স্টেডিয়ামে গ্রুপ-সির ম্যাচে মুক্তিযোদ্ধাকে ২-১ গোলে হারায় মোহামেডান।

মুক্তিযোদ্ধা সংসদকে হারিয়ে স্বাধীনতা কাপ শুরু করল মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাব। দুইবার এগিয়ে যায় মতিঝিলের ঐতিহ্যবাহী দলটি. পরে এক গোলে ব্যবধান কমায় মুক্তিযোদ্ধা। টানটান উত্তেজনার ম্যাচ শেষ পর্যন্ত জিতে নেয় মোহামেডান।

রোববার বীরশ্রেষ্ঠ মোস্তফা কামাল স্টেডিয়ামে গ্রুপ-সির ম্যাচে মুক্তিযোদ্ধাকে ২-১ গোলে হারায় মোহামেডান।

ম্যাচের শুরু থেকে সমান তালে খেলতে থাকে দুই দল। প্রথমার্ধের প্রথম ২০ মিনিট মোহামেডানকে কিছুটা চেপে ধরে মুক্তিযোদ্ধা। সময় গড়ানোর পাশাপাশি ম্যাচে নিজেদের ছন্দ খুঁজে পায় মোহামেডান।

ধারাবাহিকতা বজায় রেখে ম্যাচের ৩৫ মিনিটে সুলেমান দিয়াবাতের গোলে লিড নেয় সাদা-কালোরা।

জাফর ইকবালের লং পাস যখন ডি-বক্সের ভেতরে ঢুকছে, তখন বলের দখল নিয়ে ডিফেন্ডারকে বোকা বানিয়ে সিক্স ইয়ার্ডের সামনে থেকে গোল করতে ভুল করেননি দিয়াবাত। তার গোলের সুবাদে লিডের স্বস্তি নিয়ে বিরতিতে যায় মোহামেডান।

রোমাঞ্চকর জয়ে স্বাধীনতা কাপ শুরু মোহামেডানের
সুলেমান দিয়াবাতের গোলে মোহামেডানের লিড নেয়ার মুহূর্ত। ছবি: বাফুফে

বিরতির পরপরই ব্যবধান দ্বিগুনের সুযোগ পায় মোহামেডান। ম্যাচের ৪৮ মিনিটে জাফর ইকবালের পাস থেকে গোলপোস্ট খালি পেয়েও বলে টোকা দিতে পারেননি শাহেদ।

এর পরের মিনিটে আর ভুল করেননি তিনি।

দলীয় নৈপুণ্যে স্কোরলাইন ২-০ করে মোহামেডান। সুলেমান দিয়াবাতের পাস থেকে ডি-বক্সের ডান পাশ থেকে বুলেট শটে বল জালে জড়ান শাহেদ।

কাউন্টার অ্যাটাকে কিছুক্ষণ পর ব্যবধান কমায় মুক্তিযোদ্ধা। রোমানের বাড়িয়ে দেয়া বল পেয়ে দলের জাপানিজ মিডফিল্ডার সোমা দুই ডিফেন্ডারকে কাটিয়ে জায়গা তৈরি করে শট নেন।

শট পা দিয়ে দারুণভাবে থামিয়ে দেন মোহামেডানের গোলকিপার সুজন। বল বাধা পেয়ে শূন্যে ভাসলে হেড করে তা জালে জড়ান মুক্তিযোদ্ধার ফরোয়ার্ড তেতসু।

ম্যাচের ৮০ মিনিটে সমতায় ফেরার সুবর্ণ সুযোগ হাতছাড়া করে মুক্তিযোদ্ধা। সিক্স ইয়ার্ডের সামনে পেয়ে যাওয়া সহজ বল গোলকিপার সুজন বরাবর মারেন সোমা। মুক্তিযোদ্ধার গোলমিসে বিপদমুক্ত হয় মোহামেডান।

শেষ পর্যন্ত ২-১ গোলের জয়ের উল্লাসে মেতে পূর্ণ তিন পয়েন্ট নিয়ে মাঠ ছাড়ে মোহামেডান।

এ জয়ে তিন পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের শীর্ষে উঠে গেল মোহামেডান। হারে টুর্নামেন্ট শুরু করা মুক্তিযোদ্ধা নেমে গেছে টেবিলের তলানিতে।

আরও পড়ুন:
পাঁচ বছর পর বার্সায় দানি আলভেস
কোচ চাভির আনুষ্ঠানিক যাত্রা শুরু
ইনজুরির কারণে স্পেন দলে নেই ফাতি

শেয়ার করুন

মৌসুমে প্রথম টানা দুই ম্যাচে জয় বার্সেলোনার

মৌসুমে প্রথম টানা দুই ম্যাচে জয় বার্সেলোনার

শেষ মুহূর্তে গোল করার পর উদযাপন করছেন ফিলিপে কোতিনিয়ো। ছবি: এএফপি

ভিয়ারিয়ালের মাঠ এল মাদ্রিগালে শেষ মুহূর্তের দুই গোলে ৩-১ ব্যবধানে ম্যাচ জিতেছে বার্সেলোনা। বার্সেলোনার হয়ে গোল করেছেন ফ্র্যাঙ্কি ডি ইয়ং, মেম্ফিস ডিপায় ও ফিলিপে কোতিনিয়ো।

নতুন কোচ চাভি এর্নান্দেসের অধীনের নিজেদের ভাগ্য বদলের মিশনে শুরুটা খারাপ হয়নি বার্সেলোনার। মৌসুমে প্রথমবারের মতো লিগে টানা দুই ম্যাচে জয় পেয়েছে লিওনেল মেসির সাবেক ক্লাব।

ভিয়ারিয়ালের মাঠ এল মাদ্রিগালে শেষ মুহূর্তের দুই গোলে ৩-১ ব্যবধানে ম্যাচ জিতেছে বার্সেলোনা। বার্সেলোনার হয়ে গোল করেছেন ফ্র্যাঙ্কি ডি ইয়ং, মেম্ফিস ডিপায় ও ফিলিপে কোতিনিয়ো।

সফরকারীরা শুরু থেকে গোল মিসের মহড়া দিতে থাকে। প্রথম ২০ মিনিটের মতে সহজ সুযোগ নষ্ট করেন এতসালসুলি, ডিপায় ও গাভি। ভিয়ারিয়াল তেমন কোনো সুযোগ তৈরি করতে পারেনি শুরুতে।

তবে বার্সেলোনার সুযোগ হাতছাড়া করার কারণে গোলশূন্য অবস্থাতে শেষ হয় প্রথম ৪৫ মিনিট।

বিরতির পরপরই অতিথিদের উল্লাসে মাতান ফ্র্যাংকি ডি ইয়ং। ৪৮ মিনিটে ডেড লক ভাঙেন এ ডাচম্যান।

বাম প্রান্ত থেকে করা জোর্দি আলবার ক্রসে পা ছোঁয়ান ডিপায়। ভিয়ারিয়াল গোলকিপার শট ঠেকিয়ে দিলে বল পেয়ে যান ডি ইয়ং।

কাছ থেকে লক্ষ্যভেদ করতে সমস্যা হয়নি তার। ১-০ গোলে এগিয়ে যায় বার্সা।

গোল হজমের আধঘণ্টার মধ্যেই সমতা ফেরায় ভিয়ারিয়াল। ৭৬ মিনিটে বদলি হিসেবে নামা স্যামুয়েল চুকুওয়েজে স্কোরলাইনকে ১-১ বানিয়ে দেন।

বার্সেলোনা ম্যাচ নিশ্চিত করতে সময় নিয়ে নেয়। ৮৮ মিনিটে ডিপায় এগিয়ে দেন কাতালানদের।

ভিয়ারিয়াল ডিফেন্ডারের ভুলে বিপজ্জনক জায়গায় বল পেয়ে যান তিনি। সেখান থেকে গোল করতে ভুল করেননি ডিপায়।

আর ম্যাচের ইনজুরি টাইমে ফিলিপে কোতিনিয়োর গোলে স্বস্তির জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে চাভির দল।

এ জয়ে পয়েন্ট টেবিলের সাতে উঠে এল বার্সেলোনা। ১৪ ম্যাচে তাদের সংগ্রহ ২৩ পয়েন্ট।

শীর্ষে থাকা রিয়াল মাদ্রিদের চেয়ে তারা এখনও ৭ পয়েন্টে পিছিয়ে। রিয়াল এক ম্যাচ কম খেলেছে।

আরও পড়ুন:
পাঁচ বছর পর বার্সায় দানি আলভেস
কোচ চাভির আনুষ্ঠানিক যাত্রা শুরু
ইনজুরির কারণে স্পেন দলে নেই ফাতি

শেয়ার করুন

রাহবারের অভিষেকের দিনে সহজ জয় শেখ জামালের

রাহবারের অভিষেকের দিনে সহজ জয় শেখ জামালের

ওটাবেকের গোলের পর শেখ জামালের উল্লাস। ছবি: বাফুফে

বীরশ্রেষ্ঠ শহীদ মোস্তফা কামাল স্টেডিয়ামে শনিবার ‘বি’ গ্রুপের ম্যাচে বাংলাদেশ বিমান বাহিনীকে ৩-০ ব্যবধানে হারিয়েছে শেখ জামাল। এ ম্যাচের মধ্য দিয়ে দেশের ঘরোয়া ফুটবলে অভিষেক হয়েছে প্রবাসী ফুটবলার রাহবার খানের।

জাতীয় দলের পর এবার দেশের ঘরোয়া ফুটবলে অভিষেক হয়েছে প্রবাসী ফুটবলার রাহবার খানের। অভিষেকেই গোল করিয়েছেন। সহজ জয়ে স্বাধীনতা কাপের মিশন শুরু করেছে তার দল শেখ জামাল।

বীরশ্রেষ্ঠ শহীদ মোস্তফা কামাল স্টেডিয়ামে শনিবার ‘বি’ গ্রুপের ম্যাচে বাংলাদেশ বিমান বাহিনীকে ৩-০ ব্যবধানে হারিয়েছে শেখ জামাল।

রানার আপ হয়ে গত প্রিমিয়ার লিগ শেষ করা শেখ জামাল এ ম্যাচে দাপট নিয়ে খেলেছে। পুরো ম্যাচে মুহূর্মুহূ আক্রমণে বিমান বাহিনীর রক্ষণ ব্যতিব্যস্ত করে রেখেছিল।

তবে ম্যাচের আলোটা কিছুটা নিজের করে নেন রাহবার খান। তার অভিষেকটাও হলো রঙ্গীন। প্রথম ম্যাচেই মূল একাদশে খেলেছেন। গায়ে চাপিয়েছেন সাত নম্বর জার্সি।

ধারাবাহিক আক্রমণ সাজিয়ে ম্যাচের ১৬তম মিনিটে ভালিজানব ওটাবেকের গোলে এগিয়ে যায় শেখ জামাল। সলোমন কনফার্মের এগিয়ে দেয়া পাস থেকে ডি-বক্সের বাম প্রান্ত থেকে বাঁকানো শটে বল জালে জড়ান ওটাবেক।

এক গোলের লিড নিয়ে বিরতি থেকে ফিরে ম্যাচের ৫১ মিনিটে এবার সলোমনের গোলে ব্যবধান দ্বিগুণ করে শেখ জামাল। ওটাবেকের বাড়িয়ে দেয়া বলটা ডি-বক্সের বাম প্রান্ত থেকে দারুণ ভলিতে বল বারের কোনা বরাবর জালে পাঠিয়ে দেন এ নাইজেরিয়ান।

তার তিন মিনিট পরেই রাহবারের অ্যাসিস্ট থেকে সোহানুরের গোলে ব্যবধান মুহূর্তেই ৩-০ করে ফেলে শেখ জামাল। মাঝমাঠের সামনে পাওয়া বলটা যখন ভাসছে তখন চিপ পাসে বলটা এগিয়ে দেন রাহবার। ফাঁকায় পেয়ে একাই টেনে নিয়ে গিয়ে বল জালে জড়াতে ভুল করেননি সোহানুর।

আধিপত্য নিয়ে খেলা শেখ জামালের বিপক্ষে সেভাবে দাঁড়াতেই পারেনি বিমান বাহিনী। তবে একক প্রচেষ্টায় দুর্দান্ত একটা গোল করতে করতে যেন করা হয়নি সুমন রেজার। ডান প্রান্ত থেকে বল নিয়ে তিনজনকে ড্রিবলিং করে বাঁ পায়ে শট নেন সুমন। বল চলে যায় বারের গা ঘেষে।

আর ফেরা হয়নি তাদের। সহজ জয়ের স্বস্তি নিয়ে মাঠ ছেড়েছে শেখ জামাল। এ জয়ে গ্রুপের পয়েন্ট টেবিলে গোল ব্যবধানে এগিয়ে থেকে শীর্ষে ওঠে গেল ধানমন্ডির জায়ান্টরা। একই পয়েন্ট নিয়ে দুইয়ে শেখ রাসেল।

আরও পড়ুন:
পাঁচ বছর পর বার্সায় দানি আলভেস
কোচ চাভির আনুষ্ঠানিক যাত্রা শুরু
ইনজুরির কারণে স্পেন দলে নেই ফাতি

শেয়ার করুন

জয় দিয়ে স্বাধীনতা কাপ শুরু শেখ রাসেলের

জয় দিয়ে স্বাধীনতা কাপ শুরু শেখ রাসেলের

উত্তর বারিধারার পোস্টে শেখ রাসেলের আক্রমণ । ছবি: বাফুফে

শহীদ মোস্তফা কামাল স্টেডিয়ামে শনিবার বিকালে বারিধারাকে এক গোলে হারিয়েছে স্বাধীনতা কাপের সবশেষ আসরের রানার আপ দল শেখ রাসেল। একমাত্র গোল আসে মান্নাফ রাব্বির পা থেকে।

তিন বছর পর মাঠে গড়াল স্বাধীনতা কাপ। টুর্নামেন্টের উদ্বোধনী ম্যাচে উত্তর বারিধারাকে হারিয়ে মিশন শুরু করেছে শেখ রাসেল ক্রীড়া চক্র।

শহীদ মোস্তফা কামাল স্টেডিয়ামে শনিবার বিকালে বারিধারাকে এক গোলে হারিয়েছে স্বাধীনতা কাপের সবশেষ আসরের রানার আপ দল শেখ রাসেল। একমাত্র গোল আসে মান্নাফ রাব্বির পা থেকে।

উত্তর বারিধারার বিপক্ষে লিগে দুই বার মুখোমুখিতে একবার জিতেছে শেখ রাসেল। আরেকবার জিতেছে বারিধারা।

এবার পরিসংখ্যানকে এগিয়ে নিল শেখ রাসেল।

তিন বিদেশির জায়গায় মাত্র একজন নিয়ে খেলা বারিধারার ওপর শুরু থেকে দাপট নিয়ে খেলে সাইফুল বারী টিটুর বাহিনী। প্রথমার্ধ পর্যন্ত রাসেলকে রুখে দিতে সমর্থ হয় বারিধারা।

এইল্টন মাসাদের পাস থেকে প্রথমার্ধে মান্নাফ রাব্বি সুবর্ণ সুযোগ কাজে লাগাতে পারলে লিড নিয়ে বিরতিতে যেতে পারত দলটি।

জয় দিয়ে স্বাধীনতা কাপ শুরু শেখ রাসেলের
স্বাধীনতা কাপের উদ্বোধন করেন দেশের শিক্ষামন্ত্রী দিপু মনি। ছবি: বাফুফে

দ্বিতীয়ার্ধে টুর্নামেন্টের প্রথম গোলের দেখা মেলে। ৫৮ মিনিটে সেই রাব্বির গোলে অবশেষে ম্যাচে এগিয়ে যায় শেখ রাসেল।

হেমন্ত ভিনসেন্টের চিপে গিনির জাতীয় দলের সাবেক ফুটবলার এসমাইলের লবকে জালে জড়িয়ে নিজের নামের পাশে প্রথম গোল যোগ করেন মান্নাফ রাব্বি।

টুর্নামেন্টের প্রথম গোল আসল তার পা থেকে।

ম্যাচের ৬৯ মিনিটে ব্যবধান দ্বিগুণ করার সুযোগ হাতছাড়া হয় শেখ রাসেলের। জুয়েলের কর্নার কিক থেকে উড়ে আসা বল হেড করেন আলতন মাসাডো।

তার হেড গোললাইন থেকে দারুণভাবে বিপদমুক্ত করেন বারিধারার গোলকিপার জোবায়ের।

পিছিয়ে পড়া বারিধারা উল্লেখযোগ্য কোন সুযোগ তৈরি করতে না পারায় জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে শেখ রাসেল। পুরো তিন পয়েন্ট নিয়ে গ্রুপ-বির পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে অবস্থান করছে টিটুর বাহিনী।

আরও পড়ুন:
পাঁচ বছর পর বার্সায় দানি আলভেস
কোচ চাভির আনুষ্ঠানিক যাত্রা শুরু
ইনজুরির কারণে স্পেন দলে নেই ফাতি

শেয়ার করুন

কাতার বিশ্বকাপ হারাচ্ছে ইতালি বা পর্তুগালকে

কাতার বিশ্বকাপ হারাচ্ছে ইতালি বা পর্তুগালকে

বিশ্বকাপ বাছাইয়ের প্লে-অফের ফাইনালে মুখোমুখি হতে পারে ইতালি-পর্তুগাল। ছবি: এএফপি

প্লে-অফের সেমি ফাইনালে পর্তুগাল মুখোমুখি হচ্ছে তুর্কির বিপক্ষে। ইতালি প্রতিপক্ষ হিসেবে পেয়েছে নর্থ মেসিডোনিয়াকে। এই দুই প্লে-অফ জয়ীরা মুখোমুখি হবে ফাইনালে। যদি ফেভারিট হিসেবে ইতালি ও পর্তুগালকে জয়ী ধরা হয় তাহলে ফাইনালে একটি দল বিদায় নিবে প্লে-অফ পর্ব থেকে।

শঙ্কাটা বাস্তব হতে যাচ্ছে। বিশ্বকাপ বাছাইয়ের প্লে-অফের ফাইনালে মুখোমুখি হতে চলেছে ইউরো চ্যাম্পিয়ন ইতালি ও ক্রিস্টিয়ানো রোনালডোর পর্তুগাল। ফলে এই প্লে-অফ একটা তথ্য নিশ্চিত হচ্ছে- এই দুই দলের একটি নিঃসন্দেহে মিস করতে চলেছে কাতার বিশ্বকাপ।

শুক্রবার রাতে চূড়ান্ত হয়েছে ইউরোপের ১২ দলের প্লে-অফ ভাগ্য।

প্লে-অফের সেমি ফাইনালে পর্তুগাল মুখোমুখি হচ্ছে তুরস্কের বিপক্ষে। ইতালি প্রতিপক্ষ হিসেবে পেয়েছে নর্থ মেসিডোনিয়াকে।

এই দুই প্লে-অফ জয়ীরা মুখোমুখি হবে ফাইনালে। যদি ফেভারিট হিসেবে ইতালি ও পর্তুগালকে জয়ী ধরা হয় তাহলে ফাইনালে একটি দল বিদায় নিবে প্লে-অফ পর্ব থেকে।

তাদের একটি দলকে পাচ্ছে না কাতার বিশ্বকাপ। গত রাশিয়া বিশ্বকাপেও অংশ নিতে পারেনি ইতালি। এবারও কঠিন সময় অপেক্ষা করছে ইউরো চ্যাম্পিয়নদের জন্য।

এ ছাড়া প্লে-অফে ৬৪ বছরে প্রথমবার বিশ্বকাপ মঞ্চে খেলার আশায় থাকা ওয়েলস মুখোমুখি হবে অস্ট্রিয়ার বিপক্ষে। ২৪ বছরে প্রথমবার বিশ্বকাপ খেলার আশায় স্কটল্যান্ডের প্রতিপক্ষ ইউক্রেন। এই দুই ম্যাচের জয়ীরা মুখোমুখি হবে প্লে-অফ ফাইনালে।

গত বিশ্বকাপের আয়োজক রাশিয়া মুখোমুখি হবে রবার্ট লেওয়ানডোভস্কির দল পোল্যান্ডের বিপক্ষে। আর সুইডেনের প্রতিপক্ষ চেক রিপাবলিক। এই দুই ম্যাচের জয়ীরা মুখোমুখি হবে প্লে-অফ ফাইনালে।

প্লে-অফের ম্যাচগুলো হবে এক লেগের। হোম অ্যান্ড অ্যাওয়ের সুযোগ নাই। ৯০ মিনিটেই ভাগ্য নির্ধারণ হবে।

আগামী বছরের ২৪ থেকে ২৯ মার্চ অনুষ্ঠিত হবে প্লে-অফের ম্যাচগুলো।

আরও পড়ুন:
পাঁচ বছর পর বার্সায় দানি আলভেস
কোচ চাভির আনুষ্ঠানিক যাত্রা শুরু
ইনজুরির কারণে স্পেন দলে নেই ফাতি

শেয়ার করুন