‘ডার্বি’ দিয়ে বার্সায় অভিষেক হচ্ছে ‘কোচ’ চাভির

‘ডার্বি’ দিয়ে বার্সায় অভিষেক হচ্ছে ‘কোচ’ চাভির

কোচ হিসেবে শনিবার রাত ২টায় বার্সেলোনার ডাগআউটে অভিষেক হচ্ছে চাভি এর্নান্দেসের। ছবি: এএফপি

কাম্প ন্যুয়ে বাংলাদেশ সময় শনিবার রাত ২টায় এসপানিওলের বিপক্ষে মাঠে নামবে বার্সা। এ ম্যাচ দিয়ে ২৩৭৩ দিন পর বার্সেলোনার হয়ে প্রতিযোগিতামূলক ম্যাচে ফিরছেন চাভি। খেলোয়াড় হিসেবে ২০১৫ সালের ২৩ মে অশ্রুসিক্ত বিদায় দিয়েছিলেন। এবার ফিরছেন কোচ হয়ে।

বার্সেলোনায় কোচ হিসেবে অভিষেক হতে চলেছে ক্লাবের সাবেক কিংবদন্তি ফুটবলার চাভি এর্নান্দেসের। কাতালুনিয়ার আরেক ক্লাব এসপানিওলের বিপক্ষে ডার্বি দিয়ে নতুন চ্যালেঞ্জ শুরু হবে এ স্প্যানিশ কোচের।

গত এক দশকে এমন দুরবস্থা আর হয়নি বার্সার। ঘরোয়া বা আন্তর্জাতিক সব টুর্নামেন্টেই দলের অবস্থান বেগতিক। লা লিগার পয়েন্ট টেবিলে বার্সার অবস্থান ১০। ইউয়েফা চ্যাম্পিয়নস লিগেও নক আউট পর্বে খেলা নিয়ে আছে অনিশ্চয়তা।

এমন বিপর্যয়কর অবস্থা থেকে দলকে উদ্ধারের চ্যালেঞ্জটা নিতে চলেছেন চাভি।

রোনাল্ড কুমানের বিদায়ের পর বার্সার দায়িত্ব পেয়েছেন প্রায় আড়াই সপ্তাহের মতো। আন্তর্জাতিক বিরতিতে দলকে নতুন করে সাজাতে কিছুটা হলেও সময় পেয়েছেন তিনি।

তবে দায়িত্বে এসেই প্রথম ম্যাচের আগে দল সাজানো নিয়েও বিপাকে চাভি। দলের নিয়মিত ফুটবলার পেদ্রি ইনজুরিতে। উসমান ডেম্বেলেও একই সমস্যায় ভুগছেন। ছোট মাপের ইনজুরিতে আছেন সার্জিনিয়ো ডেস্টও। দানি আলভেসকে ফেরালেও জানুয়ারির আগে খেলানোর সুযোগ নেই।

এমন পরিস্থিতিতে চাভির মূল একাদশে কারা থাকছেন তা নিয়ে হয়তো চমক অপেক্ষা করছে সমর্থকদের জন্য।

বাংলাদেশ সময় শনিবার রাত ২টায় এসপানিওলের বিপক্ষে মাঠে নামবে বার্সা। এ ম্যাচ দিয়ে ২৩৭৩ দিন পর বার্সেলোনার হয়ে কোনো প্রতিযোগিতামূলক ম্যাচে ফিরছেন চাভি। খেলোয়াড় হিসেবে ২০১৫ সালের ২৩ মে অশ্রুসিক্ত বিদায় জানিয়েছিলেন। এবার ফিরছেন কোচ হয়ে।

মাঝে কাতারের দল আল সাদকে তিন মৌসুমে সাত শিরোপা জিতিয়েছেন চাভি। ওই সময়টাতে দলটির খেলাতেও ছিল তিকি-তাকার দুর্দান্ত প্রদর্শন।

আরও পড়ুন:
কোচ চাভির আনুষ্ঠানিক যাত্রা শুরু
বার্সেলোনাতে ফিরলেন চাভি
বার্সেলোনায় কনস্যুলার সেবা

শেয়ার করুন

মন্তব্য

মোহামেডানের বিদায়ে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন সাইফ, কোয়ার্টারে সেনাবাহিনী

মোহামেডানের বিদায়ে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন সাইফ, কোয়ার্টারে সেনাবাহিনী

মোহামেডানের জালে বল জড়ানোর পর সাইফের খেলোয়াড়দের উদযাপন। ছবি: বাফুফে

বীরশ্রেষ্ঠ শহীদ সিপাহী মোস্তফা কামাল স্টেডিয়ামে সোমবার ‘সি’ গ্রুপের সাইফ-মোহামেডান ম্যাচটি ১-১ গোলে শেষ হয়। গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়ে কোয়ার্টার ফাইনালে পা রাখল সাইফ। আর গ্রুপ পর্ব থেকে বিদায় নিয়েছে মোহামেডান। সাদা-কালো জার্সিধারীদের বিদায়ে নক আউট পর্ব নিশ্চিত করেছে সেনাবাহিনী।

চলমান রিভেইরা স্বাধীনতা কাপের হাইভোল্টেজ ম্যাচে সাইফের সঙ্গে ড্র করেছে মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাব। ফলে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়ে কোয়ার্টার ফাইনালে পা রাখল সাইফ। আর গ্রুপ পর্ব থেকে বিদায় নিয়েছে মোহামেডান। সাদা-কালো জার্সিধারীদের বিদায়ে নক আউট পর্ব নিশ্চিত করেছে সেনাবাহিনী।

বীরশ্রেষ্ঠ শহীদ সিপাহী মোস্তফা কামাল স্টেডিয়ামে সোমবার ‘সি’ গ্রুপের সাইফ-মোহামেডান ম্যাচটি ১-১ গোলে শেষ হয়।

টুর্নামেন্টে বলা চলে এখনও পর্যন্ত সবচেয়ে চমৎকার ম্যাচটি দেখল দেশের ফুটবল সমর্থকরা।

দিনের প্রথম ম্যাচে মুক্তিযোদ্ধা সংসদ ক্রীড়া চক্রকে ১-১ গোলে রুখে দেয় বাংলাদেশ সেনাবাহিনী। এ ড্রয়ে নক আউট পর্বে যাওয়ার সুযোগ তৈরি হয় মোহামেডানকে আগের ম্যাচে হারানো সার্ভিসেস দলটির।

আর কোয়ার্টার ফাইনালে যেতে সাইফকে হারানোর বিকল্প ছিল না মোহামেডানের। আর হারলেও গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়ে কোয়ার্টারে চলে যেতো সাইফ।

এমন সমীকরণকে সামনে রেখে দুর্দান্ত একটা ম্যাচ উপহার দিল সাইফ-মোহামেডান। বলা চলে, এখনও পর্যন্ত সবচেয়ে উত্তেজনাকর ম্যাচ দেখল সমর্থকরা।

দুই দলই হাই প্রেসিংয়ের সঙ্গে গোছানো ফুটবলের পসরা সাজিয়েছে। আক্রমণ-পাল্টা আক্রমণে ভরপুর ছিল ম্যাচ।

সমান তালে খেলেছে দুই দল। তবে প্রথমার্ধের শেষ মিনিটের গোলে লিড নিয়ে ফেলে সাইফ। অধিনায়ক জামাল ভূঁইয়ার পাস থেকে বল নিজের নিয়ন্ত্রণে নেন ফরোয়ার্ড ফয়সাল আহমেদ ফাহিম। ডান প্রান্ত দিয়ে ছুটতে থাকা এমফুন উদোহকে ক্রস করেন ফাহিম। বল পেয়ে বুলেট শটে দৃষ্টিনন্দন গোল করেন এ নাইজেরিয়ান।

দ্বিতীয়ার্ধের প্রথম ৩০ মিনিট দারুণ কিছু সুযোগ তৈরি করে সাইফ। কোয়ার্টার নিশ্চিত করতে তখন মোহামেডানের দরকার দুই গোল। মরিয়া হয়ে ম্যাচের শেষদিকে লাগাতার আক্রমণ করে যায় শন লেনের শিষ্যরা।

অবশেষে নির্ধারিত সময় পেরিয়ে ইনজুরি টাইমে কাঙ্ক্ষিত গোলে সমতায় ফেরে মোহামেডান। আলমগীরের কর্নার কিক থেকে গোল করেন সজীব।

এরপরে আর জয়সূচক গোল করার সম্ভব হয়নি কারও।

ফলে ৭ পয়েন্ট নিয়ে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়ে টুর্নামেন্টের কোয়ার্টার নিশ্চিত করে সাইফ। একই পয়েন্ট হওয়া সত্ত্বেও মুখোমুখি মোকাবেলায় সেনাবাহিনীর কাছে হারায় বিদায় নেয় মোহামেডান। সাইফের সঙ্গে গ্রুপ রানার আপ হয়ে নক আউট পর্ব নিশ্চিত করে সেনাবাহিনী।

আরও পড়ুন:
কোচ চাভির আনুষ্ঠানিক যাত্রা শুরু
বার্সেলোনাতে ফিরলেন চাভি
বার্সেলোনায় কনস্যুলার সেবা

শেয়ার করুন

গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়ে কোয়ার্টার ফাইনালে শেখ রাসেল

গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়ে কোয়ার্টার ফাইনালে শেখ রাসেল

বল দখলের লড়াইয়ে শেখ জামাল ও শেখ রাসেল। ছবি: বাফুফে

ড্রয়ে শেষ হয়েছে শেখ জামাল-শেখ রাসেল ম্যাচটি। পয়েন্ট তালিকার শীর্ষে থেকে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়ে কোয়ার্টার ফাইনাল নিশ্চিত করেছে শেখ রাসেল। আর রানার-আপ হয়ে শেষ আটে পা রাখল শেখ জামাল।

ড্র করলেও গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন-এমন সমীকরণ সামনে রেখে মাঠে নামে শেখ রাসেল। আর শেখ জামালের হিসেবটা ছিল-জিতলেই চ্যাম্পিয়ন। তবে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের দুই পুত্রের নামে প্রতিষ্ঠিত দুই ক্লাবের মুখোমুখি লড়াইয়ে কেউই জেতেনি।

ড্রয়ে শেষ হয়েছে ম্যাচটি। তাই এক পয়েন্ট করে পকেটে পুড়ে মাঠ ছাড়ে দু'দল। এই ম্যাচের মধ্য দিয়ে স্বাধীনতা কাপের গ্রুপ ‘বি’ এর খেলা শেষ হয়েছে।

পয়েন্ট তালিকার শীর্ষে থেকে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়ে কোয়ার্টার ফাইনাল নিশ্চিত করেছে শেখ রাসেল। আর গ্রুপ রানার-আপ হয়ে শেষ আটে পা রেখেছে শেখ জামাল।

এর আগে দুই জয়ে ছয় পয়েন্ট নিয়ে আগেই নক-আউট পর্ব নিশ্চিত করে শেখ রাসেল। আর এক জয় ও এক ড্রয়ে ঝুলে ছিল শেখ জামালের ভাগ্য।

তবে রোববার শহীদ বীরশ্রেষ্ঠ মোস্তফা কামাল স্টেডিয়ামে দিনের প্রথম ম্যাচে উত্তর বারিধারা ও বাংলাদেশ বিমানবাহিনীর মধ্যকার ম্যাচটি ড্র হওয়ায় নক-আউট পর্ব নিশ্চিত হয়ে যায় শেখ জামাল ও শেখ রাসেলের।

দিনের শেষ ম্যাচে নিজেদের মধ্যে তাই গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হওয়ার লড়াইয়ে নেমেছিল দুই দল।

ম্যাচের ২৭ মিনিটে দৃষ্টিনন্দন গোলে লিড নেয় শেখ জামাল।

রাহবারের পাস থেকে বল পেয়ে ডান প্রান্ত থেকে দুই ডিফেন্ডারকে কাটিয়ে একক নৈপুণ্যে বাঁ পায়ে বুলেট শটে বল জালে জড়িয়ে দেন শাহীন। গোলকিপার আশরাফুল রানা ডাইভ দিয়ে ফিস্ট করার চেষ্টা করলেও বলের গতির কাছে হার মানতে হয় তাকে।

দুর্দান্ত গোলে শেখ জামাল এগিয়ে গেলেও ম্যাচে ফিরতে সময় নেয়নি শেখ রাসেল।

ম্যাচের ৩০ মিনিটের মাথায় গোলকিপার রানার লম্বা থ্রো থেকে বল পেয়ে নিয়ন্ত্রণে রেখে একজনকে কাটিয়ে সামনে এগিয়ে দেন মাসাদো। তার বাড়ানো পাস ডি-বক্সে ঢুকার সময় গোলকিপার নাইম এগিয়ে এলে তাকে ভেলকি দিয়ে ফাঁকা জায়গা তৈরি করে গোল করেন ইসমাইল রুডি।

পরের অর্ধে বহু চেষ্টাতেও জয়সূচক গোলের দেখা পায়নি কোনো দল। ফলে ১-১ গোলে ম্যাচটি শেষ হলে ৭ পয়েন্ট নিয়ে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয় শেখ রাসেল। আর ৫ পয়েন্ট পেয়ে রানার-আপ হয় শেখ জামাল।

কোয়ার্টারে শেখ রাসেল মুখোমুখি হবে গ্রুপ ‘ডি’-এর রানার-আপ দলের সঙ্গে। আর গ্রুপ ‘ডি’-এর চ্যাম্পিয়ন দলের মুখোমুখি হবে শেখ জামাল। কোয়ার্টারের দুটি ম্যাচ আয়োজন হবে ১২ ডিসেম্বর।

আরও পড়ুন:
কোচ চাভির আনুষ্ঠানিক যাত্রা শুরু
বার্সেলোনাতে ফিরলেন চাভি
বার্সেলোনায় কনস্যুলার সেবা

শেয়ার করুন

বারিধারা-বিমানবাহিনীর ড্রয়ে কোয়ার্টারে দুই ‘শেখ’

বারিধারা-বিমানবাহিনীর ড্রয়ে কোয়ার্টারে দুই ‘শেখ’

উত্তর বারিধারা ও বিমানবাহিনীর মধ্যকার ম্যাচের একটি মুহূর্ত। ছবি: এএফপি

বীরশ্রেষ্ঠ শহীদ মোস্তফা কামাল স্টেডিয়ামে ‘বি’ গ্রুপের ম্যাচে উত্তর বারিধারাকে ১-১ গোলে রুখে দেয় বাংলাদেশ বিমানবাহিনী। বেশি পয়েন্ট নিয়ে কোয়ার্টার ফাইনাল নিশ্চিত করে শেখ জামাল ও শেখ রাসেল।

চলমান রিভেইরা স্বাধীনতা কাপে উত্তর বারিধারা ও বাংলাদেশ বিমান বাহিনীর ম্যাচটি ড্র হয়। ফলে নক আউট পর্বে যাওয়ার আশা শেষ হয়ে যায় প্রিমিয়ার লিগের দল বারিধারার। আর বেশি পয়েন্ট নিয়ে কোয়ার্টার ফাইনাল নিশ্চিত করে শেখ জামাল ও শেখ রাসেল।

বীরশ্রেষ্ঠ শহীদ মোস্তফা কামাল স্টেডিয়ামে ‘বি’ গ্রুপের ম্যাচে উত্তর বারিধারাকে ১-১ গোলে রুখে দেয় বাংলাদেশ বিমানবাহিনী।

এর আগে গ্রুপের প্রথম দুই ম্যাচে শেখ জামালের সঙ্গে ড্র আর শেখ রাসেলের কাছে হারে বারিধারা। আর দুটি ম্যাচই হেরেছিল বিমানবাহিনী। এক পয়েন্ট নিয়ে কোয়ার্টার ফাইনালের আশা টিকে ছিল বারিধারার।

তা আর হলো না। বিমানবাহিনীর জালে ধরা দেয় বারিধারা।

গোলশূন্য প্রথমার্ধের পর দ্বিতীয়ার্ধে ম্যাচের ৪৯ মিনিটে জুয়েল মিয়ার গোলে লিড নেয় বিমানবাহিনী।

ম্যাচের একেবারে শেষ ১০ মিনিটে সমতায় ফেরে বারিধারা। ৮২ মিনিটে এভগেনি কচনেভের গোলে সমতা আনে বারিধারা। শেষে জয়সূচক গোলের দেখা পায়নি কোনো দল।

ফলে গ্রুপের শীর্ষে থাকা শেখ জামাল ও শেখ রাসেল ‘বি’ গ্রুপ থেকে নক আউট পর্ব নিশ্চিত করেছে। আর টুর্নামেন্টের গ্রুপ পর্ব থেকে বিদায় নিয়েছে বারিধারা ও বিমানবাহিনী।

আরও পড়ুন:
কোচ চাভির আনুষ্ঠানিক যাত্রা শুরু
বার্সেলোনাতে ফিরলেন চাভি
বার্সেলোনায় কনস্যুলার সেবা

শেয়ার করুন

টানা দ্বিতীয় ড্র মেসিদের

টানা দ্বিতীয় ড্র মেসিদের

লঁসের বিপক্ষে বল দখলের লড়াইয়ে পিএসজির লিওনেল মেসি। ছবি: এএফপি

লঁসের মাঠে ১-১ গোলের ড্র নিয়ে সন্তুষ্ট থাকতে হয় পিএসজিকে। এ ড্রয়ে লিগ টেবিলের শীর্ষস্থান ধরে রাখলেও ব্যবধান কমেছে প্যারিসিয়ানদের।

ফ্রেঞ্চ লিগে ড্রয়ের হতাশ কাটিয়ে উঠতে পারছে না প্যারিস সেইন্ট জার্মেই (পিএসজি)। টানা দ্বিতীয় ম্যাচে পয়েন্ট হারিয়েছে লিওনেল মেসির দল।

লঁসের মাঠে ১-১ গোলের ড্র নিয়ে সন্তুষ্ট থাকতে হয় পিএসজিকে। এ ড্রয়ে লিগ টেবিলের শীর্ষস্থান ধরে রাখলেও ব্যবধান কমেছে প্যারিসিয়ানদের।

ম্যাচের শুরু থেকে দুই দলই আক্রমণাত্মক খেলতে থাকে। প্রথম সুযোগ পায় পিএসজি।

১৮ মিনিটে ভেরাত্তির পাস থেকে নেয়া মেসির শট পোস্টে লেগে ফিরে আসে। এরপর লঁসের টানা তিনটি আক্রমণ নস্যাৎ করে দেয় পিএসজি।

এর মধ্যে সবচেয়ে ভালো সুযোগটি পান চেইক ডোকোরে। ৩০ মিনিটে তার নেয়া শট অসাধারণ দক্ষতায় ফিরিয়ে দলকে নিরাপদে রাখেন পিএসজি কিপার কেইলর নাভাস।

প্রথমার্ধের শেষ মুহূর্তে সহজ সুযোগ নষ্ট করেন আনহেল দি মারিয়া। কাছ থেকে করা এই আর্জেন্টাইনের ভলি ঝাপিয়ে পড়ে ঠেকান লঁসের গোলকিপার।

বিরতির পর আসে ম্যাচের প্রথম গোল। ৬২ মিনিটে মেসির কাছ থেকে বল নিয়ে জোরালো শটে লক্ষ্যভেদ করেন সেকো ফোফানা।

পিএসজির খেলোয়াড়রা ফাউলের আবেদন করলেও তা কানে তোলেননি রেফারি। ১-০ গোলে এগিয়ে যায় লঁস।

পিছিয়ে পড়ে আক্রমণের তীব্রতা বাড়িয়ে দেয় পিএসজি। মেসি খেলার নিয়ন্ত্রণ নিয়ে আক্রমণ সাজাতে থাকেন। তবে গোলের দেখা পাচ্ছিল না অতিথি দল।

ম্যাচের শেষ মুহূর্তে আসে পিএসজির কাঙ্ক্ষিত গোল। ৯২ মিনিটে কিলিয়ান এমবাপের ক্রসে মাথা ছুঁইয়ে সমতা ফেরান জর্জিনিয়ো উইনাল্ডাম। স্বস্তি ফেরে মরিসিও পচেত্তিনোর শিবিরে।

এক পয়েন্ট নিয়ে নিজ শহরে ফিরতে হয় পিএসজিকে। ১৭ ম্যাচে ৪২ পয়েন্ট নিয়ে তারা শীর্ষেই থাকল। এক ম্যাচ কম খেলা ও দুইয়ে থাকা মার্শেইয়ের সংগ্রহে আছে ২৯ পয়েন্ট।

আরও পড়ুন:
কোচ চাভির আনুষ্ঠানিক যাত্রা শুরু
বার্সেলোনাতে ফিরলেন চাভি
বার্সেলোনায় কনস্যুলার সেবা

শেয়ার করুন

বার্সা ও আতলেতিকোর হারের রাতে রিয়ালের জয়

বার্সা ও আতলেতিকোর হারের রাতে রিয়ালের জয়

রিয়ালের হয়ে ম্যাচে প্রথম গোলের পর উচ্ছ্বসিত ভিনিসিয়াস। ছবি: এএফপি

সোসিয়েদাদের মাঠে রিয়ালের জয় ছিল ২-০ গোলের। একই রাতে দুই প্রতিদ্বন্দ্বী বার্সেলোনা ও আতলেতিকো মাদ্রিদ হেরে যাওয়ায় জয়টা আরও মধুর হয়েছে রিয়ালের জন্য।

স্প্যানিশ লা লিগায় দারুণ জয়ে শীর্ষস্থান মজবুত করেছে রিয়াল মাদ্রিদ। রিয়াল সোসিয়েদাদের বিপক্ষে জয়ে লিগ টেবিলে তাদের লিড দাঁড়িয়েছে ৮ পয়েন্টের। একই রাতে দুই প্রতিদ্বন্দ্বী বার্সেলোনা ও আতলেতিকো মাদ্রিদ হেরে যাওয়ায় জয়টা আরও মধুর হয়েছে রিয়ালের জন্য।

সোসিয়েদাদের মাঠে রিয়ালের জয় ছিল ২-০ গোলের। প্রথমার্ধে রিয়ালকে আটকে রাখতে সক্ষম হয় সোসিয়েদাদ।

তবে দ্বিতীয়ার্ধ শুরুর ১৫ মিনিটের মধ্যে জোড়া গোল করে ম্যাচভাগ্য নির্ধারণ করে দেন লস ব্লাঙ্কোস।

৪৭ মিনিটে ম্যাচের প্রথম গোল আসে ভিনিসিয়াস জুনিয়রের পা থেকে। আর ১০ মিনিট পর লিড দ্বিগুণ হয় লুকা ইয়োভিচের গোলে।

ওই দুই গোলের জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে রিয়াল। ১৬ ম্যাচে ৩৯ পয়েন্ট নিয়ে তারা শক্তভাবে ধরে রেখেছে লিগ টেবিলের শীর্ষস্থান।

দুইয়ে থাকা সেভিয়া তাদের চেয়ে আট পয়েন্ট পিছিয়ে আছে। তবে তারা ম্যাচ খেলেছে ১৫টি।

রিয়াল মাঠে নেমেছিল বার্সেলোনার হারের সুখবর নিয়ে। নিজ মাঠে রিয়াল বেতিসের কাছে ১-০ গোলে হেরে গেছে সাবেক চ্যাম্পিয়নরা।

কাম্প ন্যুয়ে হুয়ানমির করা ৭৭ মিনিটের গোল নিশ্চিত করে বেতিসের জয় ও নতুন কোচ চাভি এর্নান্দেসের অধীনে বার্সেলোনার প্রথম পরাজয়।

লিগে চতুর্থ হার এটি বার্সেলোনার। ১৫ ম্যাচে ২৩ পয়েন্ট নিয়ে তারা আছে টেবিলের ৭-এ।

একই রাতে হেরেছে আতলেতিকো মাদ্রিদও। লিগ চ্যাম্পিয়নরা মায়োর্কার কাছে হেরেছে ২-১ গোলে।

নিজ মাঠে ৬৮ মিনিটে করা মাথিয়াস কুনিয়ার গোলে এগিয়ে ছিল আতলেতিকো। কিন্তু শেষ ১০ মিনিটে সব হিসাব পালটে দেয় মায়োর্কা।

৮০ মিনিটে গোল করে ম্যাচে সমতা ফেরান ফ্রাঙ্কো রুসো। আর ম্যাচের ইনজুরি টাইমে গোল করে মায়োর্কাকে স্মরণীয় এক জয় এনে দেন জাপানি রিক্রুট তাকেফুসা কুবো।

এই হারে টেবিলের চারে নেমে গেল আতলেতিকো। ১৫ ম্যাচে তাদের ঝুলিতে আছে ২৯ পয়েন্ট।

আরও পড়ুন:
কোচ চাভির আনুষ্ঠানিক যাত্রা শুরু
বার্সেলোনাতে ফিরলেন চাভি
বার্সেলোনায় কনস্যুলার সেবা

শেয়ার করুন

শীর্ষে থাকা চেলসিকে হারিয়ে ওয়েস্ট হ্যামের চমক

শীর্ষে থাকা চেলসিকে হারিয়ে ওয়েস্ট হ্যামের চমক

চেলসির জালে বল জড়ানোর পর ওয়েস্ট হ্যামের ফুটবলারদের উদযাপন। ছবি: এএফপি

ওয়েস্ট হ্যামের জাদুকরি উত্থানে এবারে পরাজয়ের স্বাদ নিতে হয়েছে ইংলিশ জায়ান্ট লিভারপুল, ম্যানচেস্টার সিটি, ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড ও টটেনহ্যামকে। সর্বশেষ চেলসিকে তারা হারায় ৩-২ ব্যবধানে।

ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগের পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে থাকা চেলসিকে হারিয়ে আরেকটি চমক উপহার দিয়েছে ওয়েস্ট হ্যাম ইউনাইটেড। দুবার পিছিয়ে থেকে প্রত্যাবর্তনের পাশাপাশি শেষ মুহূর্তের গোলে ইউয়েফা চ্যাম্পিয়নস লিগের ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়নদের হারের স্বাদ দিয়েছে লন্ডনের দলটি।

লন্ডন স্টেডিয়ামে শনিবার চেলসিকে আতিথ্য দেয় ওয়েস্ট হ্যাম। ৩-২ গোলে রোমাঞ্চকর ম্যাচটি জিতে ডেভিড ময়েসের বাহিনী।

এবার লিগে শীর্ষ চারের লড়াইয়ে বেশ চমকের নাম ওয়েস্ট হ্যাম। কখনও লিগ জিততে না পারা দলটি এবার জায়ান্টদের সঙ্গে টক্কর দিয়ে সেরা চারে অবস্থান করছে।

নিজেদের উন্নতির প্রমাণ তারা দিল ঘরের মাটিতে চেলসিকে হারিয়ে।

শুরুতেই চেলসি আধিপত্য নেয় মেসন মাউন্টের পাস থেকে ম্যাচের ২৯ মিনিটে থিয়াগো সিলভার গোলে। ম্যাচের ৪০ মিনিটে মানুয়েল লানজিনির পেনাল্টি গোলে সমতায় ফেরে ওয়েস্ট হ্যাম।

ঠিক তার মিনিট তিনেক পর হাকিম জিয়েখের ক্রস থেকে দারুণ ভলিতে মেসন মাউন্টের গোলে আবারও চালকের আসনে বসে চেলসি।

বিরতির পর আবারও সমতায় ফেরে ওয়েস্ট হ্যাম। এবার ভ্লাদিমির কাউফেলের পাস থেকে দলকে গোল এনে দেন জেরড বাওয়েন।

এরপর জয়সূচক গোল পেতে মরিয়া হয় দুই দল। ম্যাচের ৮৭ মিনিটে গোলের দেখা পায় ওয়েস্ট হ্যাম। মিকাইল আন্তোনিওর পাস থেকে গোল করেন বদলি হিসেবে নামা ডিফেন্ডার আর্থুর মাসুয়াকা।

চেলসিকে চমকে দিয়ে শেষ পর্যন্ত জয়ের হাসি নিয়ে মাঠ ছাড়ে ওয়েস্ট হ্যাম। লিগে এটা তাদের অষ্টম জয়। আর দ্বিতীয় হার চেলসির। ৩৩ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে আছে চেলসি। আর ২৭ পয়েন্ট নিয়ে চারে ওয়েস্ট হ্যাম।

ওয়েস্ট হ্যামের জাদুকরি উত্থানে এবারে পরাজয়ের স্বাদ নিতে হয়েছে ইংলিশ জায়ান্ট লিভারপুল, ম্যানচেস্টার সিটি, ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড ও টটেনহ্যামকে।

আরও পড়ুন:
কোচ চাভির আনুষ্ঠানিক যাত্রা শুরু
বার্সেলোনাতে ফিরলেন চাভি
বার্সেলোনায় কনস্যুলার সেবা

শেয়ার করুন

এবার নৌবাহিনীর কাছে পয়েন্ট খোয়াল চট্টগ্রাম আবাহনী

এবার নৌবাহিনীর কাছে পয়েন্ট খোয়াল চট্টগ্রাম আবাহনী

চট্টগ্রাম আবাহনীর জালে বল জড়ানোর পর নৌবাহিনীর উদযাপন। ছবি: বাফুফে

বীরশ্রেষ্ঠ শহীদ মোস্তফা কামাল স্টেডিয়ামে শনিবার গ্রুপ ডি-র ম্যাচে চট্টগ্রাম আবাহনীকে ১-১ গোলে রুখে দিয়েছে বাংলাদেশ নৌবাহিনী। এ ড্রয়ের ফলে কোয়ার্টার ফাইনালে যাওয়ার আশা কমে গেল বন্দরনগরীর দলটির।

স্বাধীনতা কাপ ফুটবলের প্রথম ম্যাচে বাংলাদেশ পুলিশের কাছে পয়েন্ট হারিয়ে টুর্নামেন্ট শুরু করে চট্টগ্রাম আবাহনী। দ্বিতীয় ম্যাচে এবার বাংলাদেশ নৌবাহিনীর কাছে হোঁচট খেল মারুফুল হকের বাহিনী। এ ড্রয়ের ফলে কোয়ার্টার ফাইনালে যাওয়ার আশা কমে গেল বন্দরনগরীর দলটির।

বীরশ্রেষ্ঠ শহীদ মোস্তফা কামাল স্টেডিয়ামে গ্রুপ ডি-র ম্যাচে শনিবার চট্টগ্রাম আবাহনীকে ১-১ গোলে রুখে দিয়েছে বাংলাদেশ নৌবাহিনী।

এর আগে বাংলাদেশ পুলিশের সঙ্গে ড্র করে পয়েন্ট খুইয়ে টুর্নামেন্ট শুরু করে চট্টগ্রাম আবাহনী। আর কিংসের কাছে ৬-০ ব্যবধানে ভরাডুবির মাধ্যমে টুর্নামেন্ট শুরু করে নৌবাহিনী। তাই দ্বিতীয় ম্যাচটা ফেরার মঞ্চে পরিণত হয় দুই দলের জন্য।

ম্যাচের ১৪ মিনিটে‌ চট্টগ্রাম আবাহনীকে চমকে লিড নেয় নৌবাহিনী। রহমত মিয়ার ক্রস থেকে জুয়েল রানার হেড ঠিকানা খুঁজে পেলে প্রথম গোলের উল্লাসে মাতে নৌবাহিনী।

এক গোলের স্বস্তিতে বিরতি থেকে ফিরে অগোছালো খেলতে দেখা যায় দুই দলকে। ম্যাচে ফিরতে মরিয়া আবাহনীর শিবিরে আরেকটি আঘাত আসে ম্যাচের ৮৫ মিনিটে।

নৌবাহিনীর মিডফিল্ডার গালিবকে বাজে ট্যাকেলের জন্য লাল কার্ড দেখে মাঠ ছাড়তে হয় সোহেল রানাকে।

ফলে ১০ জনের দলে পরিণত হয় আবাহনী। এ অবস্থা নিয়েও আক্রমণ চালিয়ে যায় চট্টগ্রাম আবাহনী। নির্ধারিত সময়ের শেষ মিনিটে সমতায় ফেরে বন্দরনগরীর দলটি। কামরুল রাব্বির ফ্রি-কিক থেকে উড়ে আসা বলে দারুণ হেডে বল জালে জড়ান কেহিনডে ইসা।

পরে আর কেউ গোলের দেখা না পেলে পয়েন্ট ভাগাভাগি করে মাঠ ছাড়ে দুই দল।

এ ড্রয়ের ফলে কোয়ার্টারে খেলা কঠিন হয়ে গেল চট্টগ্রাম আবাহনীর জন্য। শেষ ম্যাচে বসুন্ধরা কিংসের বিপক্ষে পয়েন্ট পাওয়ার বিকল্প নেই মারুফুল হক বাহিনীর।

আর নক আউট পর্বে খেলার সুযোগ আছে গ্রুপের অন্য দুই দল পুলিশ ও নৌবাহিনীর। শেষ ম্যাচে যে জিতবে তার সম্ভাবনা রয়েছে কোয়ার্টার ফাইনালের।

আরও পড়ুন:
কোচ চাভির আনুষ্ঠানিক যাত্রা শুরু
বার্সেলোনাতে ফিরলেন চাভি
বার্সেলোনায় কনস্যুলার সেবা

শেয়ার করুন