লঙ্কায় সুযোগ না পাওয়ায় আক্ষেপ নেই নবাবের

লঙ্কায় সুযোগ না পাওয়ায় আক্ষেপ নেই নবাবের

জাতীয় দলের জার্সিতে ওবাইদ রহমান নবাব। ছবি: বাফুফে

প্রথম দুই ম্যাচ বেঞ্চে কাটানোর পর শেষ ম্যাচে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে নবাবের অভিষেক হতে পারে বলে ইঙ্গিত দিয়েছিলেন দলের হেড কোচ মারিও লেমস। তবে, ম্যাচে তাকে নামাননি পর্তুগিজ টেকটিশিয়ান।

প্রথমবার ডাক পেয়ে লাল-সবুজ জার্সিতে ওবাইদ রহমান নবাবের অভিষেক দেখার অপেক্ষায় ছিলেন দেশের ফুটবল ভক্তরা। কিন্তু শ্রীলঙ্কায় চার জাতি টুর্নামেন্টে জাতীয় দলের জার্সি চাপিয়ে মাঠে এক মিনিটও খেলার সুযোগ পাননি তিনি। তবে এতে কোনো আক্ষেপ নেই নবাবের।

সফরটিকে অভিজ্ঞতা হিসেবে দেখছেন নবাব। ভবিষ্যতে যখন ‍সুযোগ পাবেন নিজেকে উজাড় করে দিতে চান কাতার প্রবাসী এ অ্যাটাকিং মিডফিল্ডার।

দেশে ফিরে বৃহস্পতিবার সাংবাদিকদের তিনি বলেন, ‘জাতীয় দলের সঙ্গে থাকা একটা গর্বের বিষয়। সবার সঙ্গে থাকতে পেরেছি। শিখতে পেরেছি। আমি আনন্দিত। খেলতে না পারায় কষ্টে নেই কারণ আমি মনে করি দলের জন্য যেটা সবচেয়ে ভালো সেটাই করা হয়েছে।’

প্রথম দুই ম্যাচ বেঞ্চে কাটানোর পর শেষ ম্যাচে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে নবাবের অভিষেক হতে পারে বলে ইঙ্গিত দিয়েছিলেন দলের হেড কোচ মারিও লেমস। তবে, ম্যাচে তাকে নামাননি পর্তুগিজ টেকটিশিয়ান।

পুরো সফর বেঞ্চ গরম করে দেশে ফিরতে হয়েছে তাকে। বিষয়টাকে ইতিবাচক হিসেবে দেখছেন নবাব।

বসুন্ধরা কিংসের এ ফুটবলার বলেন, ‘কোচ যদি মনে করেন কেউ আমার পজিশনে ভালো করেছে তাহলে আমি সিদ্ধান্তকে সমর্থন করি কারণ দলের জন্য সেরাটাই চাই। দল যেভাবে আমাকে চায় আমি সেভাবে নিজেকে প্রস্তুত করব।

‘আমি যদি সময় পেতাম তাহলে আমার জায়গা থেকে অবদান রাখার চেষ্টা করতাম।’

এখানে হাল ছাড়ছেন না নবাব। অভিজ্ঞতাকে সঙ্গী করে ভবিষ্যতে আরও উজ্জ্বলভাবে ফিরতে চান তিনি।

নবাব বলেন, ‘আমি আরও পরিশ্রম করব। জাতীয় দলে খেলা আমার স্বপ্ন। এ জন্যই দেশে আসা। আশা করি এ স্বপ্ন আমার পূরণ হবে। পূরণ করতে যা যা লাগে তাই করব। ইনশাল্লাহ সবার প্রত্যাশা পূরণ করব।’

দেশে ফিরে তার ক্লাব বসুন্ধরা কিংসে যোগ দেয়ার কথা নবাবের। স্বাধীনতা কাপ সামনে রেখে ক্লাবের অনুশীলনে যোগ দেবেন জাতীয় দলের এ ফুটবলার।

আরও পড়ুন:
হতাশার বৃত্ত পূরণ শেষে দেশে জামালরা
শেষ মুহূর্তের গোলে স্বপ্নভঙ্গ বাংলাদেশের
জয়ের বৃত্ত পূরণে মুখিয়ে মারিও লেমস
১৭ কোটি মানুষের জন্য ট্রফি জিততে চান জামাল
অস্কারে ‘চেতনা’, লেমসে ‘মুক্তি’

শেয়ার করুন

মন্তব্য

শীর্ষে থাকা চেলসিকে হারিয়ে ওয়েস্ট হ্যামের চমক

শীর্ষে থাকা চেলসিকে হারিয়ে ওয়েস্ট হ্যামের চমক

চেলসির জালে বল জড়ানোর পর ওয়েস্ট হ্যামের ফুটবলারদের উদযাপন। ছবি: এএফপি

ওয়েস্ট হ্যামের জাদুকরি উত্থানে এবারে পরাজয়ের স্বাদ নিতে হয়েছে ইংলিশ জায়ান্ট লিভারপুল, ম্যানচেস্টার সিটি, ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড ও টটেনহ্যামকে। সর্বশেষ চেলসিকে তারা হারায় ৩-২ ব্যবধানে।

ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগের পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে থাকা চেলসিকে হারিয়ে আরেকটি চমক উপহার দিয়েছে ওয়েস্ট হ্যাম ইউনাইটেড। দুবার পিছিয়ে থেকে প্রত্যাবর্তনের পাশাপাশি শেষ মুহূর্তের গোলে ইউয়েফা চ্যাম্পিয়নস লিগের ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়নদের হারের স্বাদ দিয়েছে লন্ডনের দলটি।

লন্ডন স্টেডিয়ামে শনিবার চেলসিকে আতিথ্য দেয় ওয়েস্ট হ্যাম। ৩-২ গোলে রোমাঞ্চকর ম্যাচটি জিতে ডেভিড ময়েসের বাহিনী।

এবার লিগে শীর্ষ চারের লড়াইয়ে বেশ চমকের নাম ওয়েস্ট হ্যাম। কখনও লিগ জিততে না পারা দলটি এবার জায়ান্টদের সঙ্গে টক্কর দিয়ে সেরা চারে অবস্থান করছে।

নিজেদের উন্নতির প্রমাণ তারা দিল ঘরের মাটিতে চেলসিকে হারিয়ে।

শুরুতেই চেলসি আধিপত্য নেয় মেসন মাউন্টের পাস থেকে ম্যাচের ২৯ মিনিটে থিয়াগো সিলভার গোলে। ম্যাচের ৪০ মিনিটে মানুয়েল লানজিনির পেনাল্টি গোলে সমতায় ফেরে ওয়েস্ট হ্যাম।

ঠিক তার মিনিট তিনেক পর হাকিম জিয়েখের ক্রস থেকে দারুণ ভলিতে মেসন মাউন্টের গোলে আবারও চালকের আসনে বসে চেলসি।

বিরতির পর আবারও সমতায় ফেরে ওয়েস্ট হ্যাম। এবার ভ্লাদিমির কাউফেলের পাস থেকে দলকে গোল এনে দেন জেরড বাওয়েন।

এরপর জয়সূচক গোল পেতে মরিয়া হয় দুই দল। ম্যাচের ৮৭ মিনিটে গোলের দেখা পায় ওয়েস্ট হ্যাম। মিকাইল আন্তোনিওর পাস থেকে গোল করেন বদলি হিসেবে নামা ডিফেন্ডার আর্থুর মাসুয়াকা।

চেলসিকে চমকে দিয়ে শেষ পর্যন্ত জয়ের হাসি নিয়ে মাঠ ছাড়ে ওয়েস্ট হ্যাম। লিগে এটা তাদের অষ্টম জয়। আর দ্বিতীয় হার চেলসির। ৩৩ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে আছে চেলসি। আর ২৭ পয়েন্ট নিয়ে চারে ওয়েস্ট হ্যাম।

ওয়েস্ট হ্যামের জাদুকরি উত্থানে এবারে পরাজয়ের স্বাদ নিতে হয়েছে ইংলিশ জায়ান্ট লিভারপুল, ম্যানচেস্টার সিটি, ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড ও টটেনহ্যামকে।

আরও পড়ুন:
হতাশার বৃত্ত পূরণ শেষে দেশে জামালরা
শেষ মুহূর্তের গোলে স্বপ্নভঙ্গ বাংলাদেশের
জয়ের বৃত্ত পূরণে মুখিয়ে মারিও লেমস
১৭ কোটি মানুষের জন্য ট্রফি জিততে চান জামাল
অস্কারে ‘চেতনা’, লেমসে ‘মুক্তি’

শেয়ার করুন

এবার নৌবাহিনীর কাছে পয়েন্ট খোয়াল চট্টগ্রাম আবাহনী

এবার নৌবাহিনীর কাছে পয়েন্ট খোয়াল চট্টগ্রাম আবাহনী

চট্টগ্রাম আবাহনীর জালে বল জড়ানোর পর নৌবাহিনীর উদযাপন। ছবি: বাফুফে

বীরশ্রেষ্ঠ শহীদ মোস্তফা কামাল স্টেডিয়ামে শনিবার গ্রুপ ডি-র ম্যাচে চট্টগ্রাম আবাহনীকে ১-১ গোলে রুখে দিয়েছে বাংলাদেশ নৌবাহিনী। এ ড্রয়ের ফলে কোয়ার্টার ফাইনালে যাওয়ার আশা কমে গেল বন্দরনগরীর দলটির।

স্বাধীনতা কাপ ফুটবলের প্রথম ম্যাচে বাংলাদেশ পুলিশের কাছে পয়েন্ট হারিয়ে টুর্নামেন্ট শুরু করে চট্টগ্রাম আবাহনী। দ্বিতীয় ম্যাচে এবার বাংলাদেশ নৌবাহিনীর কাছে হোঁচট খেল মারুফুল হকের বাহিনী। এ ড্রয়ের ফলে কোয়ার্টার ফাইনালে যাওয়ার আশা কমে গেল বন্দরনগরীর দলটির।

বীরশ্রেষ্ঠ শহীদ মোস্তফা কামাল স্টেডিয়ামে গ্রুপ ডি-র ম্যাচে শনিবার চট্টগ্রাম আবাহনীকে ১-১ গোলে রুখে দিয়েছে বাংলাদেশ নৌবাহিনী।

এর আগে বাংলাদেশ পুলিশের সঙ্গে ড্র করে পয়েন্ট খুইয়ে টুর্নামেন্ট শুরু করে চট্টগ্রাম আবাহনী। আর কিংসের কাছে ৬-০ ব্যবধানে ভরাডুবির মাধ্যমে টুর্নামেন্ট শুরু করে নৌবাহিনী। তাই দ্বিতীয় ম্যাচটা ফেরার মঞ্চে পরিণত হয় দুই দলের জন্য।

ম্যাচের ১৪ মিনিটে‌ চট্টগ্রাম আবাহনীকে চমকে লিড নেয় নৌবাহিনী। রহমত মিয়ার ক্রস থেকে জুয়েল রানার হেড ঠিকানা খুঁজে পেলে প্রথম গোলের উল্লাসে মাতে নৌবাহিনী।

এক গোলের স্বস্তিতে বিরতি থেকে ফিরে অগোছালো খেলতে দেখা যায় দুই দলকে। ম্যাচে ফিরতে মরিয়া আবাহনীর শিবিরে আরেকটি আঘাত আসে ম্যাচের ৮৫ মিনিটে।

নৌবাহিনীর মিডফিল্ডার গালিবকে বাজে ট্যাকেলের জন্য লাল কার্ড দেখে মাঠ ছাড়তে হয় সোহেল রানাকে।

ফলে ১০ জনের দলে পরিণত হয় আবাহনী। এ অবস্থা নিয়েও আক্রমণ চালিয়ে যায় চট্টগ্রাম আবাহনী। নির্ধারিত সময়ের শেষ মিনিটে সমতায় ফেরে বন্দরনগরীর দলটি। কামরুল রাব্বির ফ্রি-কিক থেকে উড়ে আসা বলে দারুণ হেডে বল জালে জড়ান কেহিনডে ইসা।

পরে আর কেউ গোলের দেখা না পেলে পয়েন্ট ভাগাভাগি করে মাঠ ছাড়ে দুই দল।

এ ড্রয়ের ফলে কোয়ার্টারে খেলা কঠিন হয়ে গেল চট্টগ্রাম আবাহনীর জন্য। শেষ ম্যাচে বসুন্ধরা কিংসের বিপক্ষে পয়েন্ট পাওয়ার বিকল্প নেই মারুফুল হক বাহিনীর।

আর নক আউট পর্বে খেলার সুযোগ আছে গ্রুপের অন্য দুই দল পুলিশ ও নৌবাহিনীর। শেষ ম্যাচে যে জিতবে তার সম্ভাবনা রয়েছে কোয়ার্টার ফাইনালের।

আরও পড়ুন:
হতাশার বৃত্ত পূরণ শেষে দেশে জামালরা
শেষ মুহূর্তের গোলে স্বপ্নভঙ্গ বাংলাদেশের
জয়ের বৃত্ত পূরণে মুখিয়ে মারিও লেমস
১৭ কোটি মানুষের জন্য ট্রফি জিততে চান জামাল
অস্কারে ‘চেতনা’, লেমসে ‘মুক্তি’

শেয়ার করুন

পুলিশকে বোকা বানিয়ে কোয়ার্টার ফাইনালে কিংস

পুলিশকে বোকা বানিয়ে কোয়ার্টার ফাইনালে কিংস

গোলের পর কিংসের খেলোয়াড়দের উল্লাস। ছবি: বাফুফে

বীরশ্রেষ্ঠ শহীদ মোস্তফা কামাল স্টেডিয়ামে শনিবার গ্রুপ ‘ডি’র ম্যাচে পুলিশ এফসিকে এক গোলে হারিয়েছে বসুন্ধরা কিংস। এ জয়ে স্বাধীনতা কাপের কোয়ার্টার ফাইনাল নিশ্চিত করেছে ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়নরা।

চলমান রিভেইরা স্বাধীনতা কাপ ফুটবলে বাংলাদেশ পুলিশ ফুটবল ক্লাবকে হারিয়ে টানা দুই জয়ে টেবিলের শীর্ষস্থানে থেকে কোয়ার্টার ফাইনাল নিশ্চিত করল বসুন্ধরা কিংস।

বীরশ্রেষ্ঠ শহীদ মোস্তফা কামাল স্টেডিয়ামে শনিবার গ্রুপ ‘ডি’র ম্যাচে পুলিশ এফসিকে এক গোলে হারিয়েছে ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়নরা।

এর আগে গ্রুপের প্রথম ম্যাচে বাংলাদেশ নৌবাহিনীকে ৬-০ ব্যবধানে উড়িয়ে দিয়ে আত্মবিশ্বাসের তুঙ্গে ছিল কিংস। আর চট্টগ্রাম আবাহনীকে রুখে দিয়ে এক পয়েন্টের স্বস্তি নিয়ে কিংসের বিপক্ষে নামে পুলিশ।

তবে এবার শক্তিশালী কিংসকে রুখে দেয়া সম্ভব হয়নি পুলিশের।

শুরুতেই পেনাল্টি থেকে গোল করে লিড নেয় বসুন্ধরা কিংস।

ম্যাচের ১৫ মিনিটে বাম প্রান্ত থেকে ইব্রাহিমের উড়ে আসা ক্রসটা পায়ে নিয়ন্ত্রণে রেখে ডি-বক্সের ভেতরে ঢুকে পড়েন জোনাথন ফার্নান্দেজ। পরে ডিফেন্ডার বল ক্লিয়ার করতে গিয়ে ব্রাজিলিয়ানের পায়ে আঘাত করলে পাশে থাকা রেফারি পেনাল্টির সিদ্ধান্ত দেন।

স্পট কিক থেকে বাংলাদেশ পুলিশের গোলকিপার নেহালকে ফাঁকি দিয়ে বল জালে জড়াতে ভুল করেননি জোনাথনের স্বদেশি ফুটবলার রবসন রবিনিয়ো।

এক গোলের স্বস্তি নিয়ে বিরতিতে যায় কিংস।

দ্বিতীয়ার্ধে কিছুটা ফিরে আসার চেষ্টা করে পুলিশ। ম্যাচের ৭৬ মিনিটে আমিরুদ্দিন শরিফির পাস পেয়ে ডি-বক্সের বাইরে থেকে নেয়া জার্মান ফরোয়ার্ড আদিল কুসকুসের নেয়া মাপা শট দারুণভাবে ফিস্ট করে বিপদমুক্ত করেন কিংসের গোলকিপার আনিসুর রহমান জিকো।

শেষ পর্যন্ত গোলের স্বস্তি নিয়ে মাঠ ছাড়ে অস্কার ব্রুজনের বাহিনী। ফলে দুই জয়ে ছয় পয়েন্ট নিয়ে তারা এখন টুর্নামেন্টের নক আউট পর্বে।

এক পয়েন্ট নিয়ে এখনও কোয়ার্টার ফাইনালে যাওয়ার আশা জিইয়ে রেখেছে এরিস্টিকা চিয়াওবার পুলিশ।

আরও পড়ুন:
হতাশার বৃত্ত পূরণ শেষে দেশে জামালরা
শেষ মুহূর্তের গোলে স্বপ্নভঙ্গ বাংলাদেশের
জয়ের বৃত্ত পূরণে মুখিয়ে মারিও লেমস
১৭ কোটি মানুষের জন্য ট্রফি জিততে চান জামাল
অস্কারে ‘চেতনা’, লেমসে ‘মুক্তি’

শেয়ার করুন

মরক্কোর এসাইদের সঙ্গে নতুন জীবন শুরু রিয়াসাতের

মরক্কোর এসাইদের সঙ্গে নতুন জীবন শুরু রিয়াসাতের

মারোয়া এসাইদ ও রিয়াসাত ইসলাম খাতন। ছবি: সংগৃহীত

মূলত সোশ্যাল মিডিয়া থেকে পরিচয়। এরপর বন্ধুত্ব। বন্ধুত্বের এই সম্পর্ক এক বছরের মধ্যে রূপ নেয় নতুন জীবনে। রিয়াসাতের নতুন জীবনের সঙ্গীর নাম মারোয়া এসাইদ। মরোক্কোর এই অধিবাসী এখন আইন বিষয়ে পড়াশুনা করছেন।

নতুন জীবন শুরু করলেন বাংলাদেশ জাতীয় দলের ফুটবলার রিয়াসাত ইসলাম খাতন। ২৭ নভেম্বর বিয়ে করেছেন জার্মানিতে বেড়ে ওঠা বাংলাদেশের এ প্রবাসী ফুটবলার।

তার নতুন জীবনের সঙ্গীর নাম মারোয়া এসাইদ। মরোক্কোর বাসিন্দা এসাইদ আইন বিষয়ে পড়াশুনা করছেন। পাশাপাশি ইউটিউবে ইনফ্লুয়েন্সার হিসেবে কাজ করেন।

মূলত সোশ্যাল মিডিয়া থেকে পরিচয়। এরপর বন্ধুত্ব। বন্ধুত্বের এই সম্পর্ক এক বছরের মধ্যে রূপ নেয় নতুন জীবনে।

মরোক্কোয় গত মাসের শেষ সপ্তাহে আরবীয় ঢঙে বিয়ের করেন এই জুটি। বিয়ের অনুষ্ঠানে বেশ হাস্যোজ্জ্বল দেখা যায় রিয়াসাত ও তার সহধর্মিনীকে। উত্তর আফ্রিকার ঐতিহ্যে সমৃদ্ধ দেশ মরোক্কোয় আরব দেশের রীতি-নীতি মেনে বিয়ে সম্পন্ন হয়।

পছন্দের বন্ধুকে জীবনসঙ্গিনী হিসেবে পেয়ে আনন্দিত রিয়াসাত বলেন, ‘খুবই ভালো লাগছে। এক বছর ধরে আমরা বন্ধু ছিলাম। সোশ্যাল মিডিয়া থেকে পরিচয়। এরপরে দেখা করা। জার্মানি থেকে মরোক্কোয় যেতাম। ঘুরতাম। এরপর ধীরে ধীরে সম্পর্ক গড়ে। পরে দুজনে মিলে সিদ্ধান্ত নিই বিয়ে করার। বাসায় জানাই। এরপর অনুষ্ঠানের কার্যক্রম হয়।’

একেবারে নাটকীয় ভাবে তাকে অবাক করে বিয়ের প্রস্তাব দিয়েছিলেন রিয়াসাত। সেই ঘটনা খুলে বলেন, ‘মরোক্কোর একটি শহরে সারপ্রাইজ অনুষ্ঠান করি। এসাইদ ছাড়া বাকি সবাই জানতো যে প্রপোজ করব। পরে সবার সামনে আংটি দিয়ে প্রস্তাব দিই।’

বউকে নিয়ে বাংলাদেশে ঘুরে যাওয়ার পরিকল্পনা আছে এ প্রবাসী ফুটবলারের। মাতৃভূমিকে পরিচয় করিয়ে দিতে চান।

দেশের ফুটবল সমর্থকদের কাছে নতুন জীবনের জন্য দোয়া চাইলেন রিয়াসাত ও মারোয়া জুটি। বাংলায় তারা বলেন, ‘আশা করছি সবাই ভালো আছে। আমাদের জন্য দোয়া করবেন। ধন্যবাদ।’

জার্মানিতে বড় হওয়া রিয়াসাত ২০১৩ সালে প্রথমবার জাতীয় দলে ডাক পান। ক্যাম্পে অনুশীলন করলেও মূল স্কোয়াডে সুযোগ হয়নি। পরে ২০১৫ সালে সিঙ্গাপুরের বিপক্ষে একটি আন্তর্জাতিক প্রীতি ম্যাচে খেলার জন্য ডাক পান। শেষ পর্যন্ত খেলা হয়নি তার।

এখন ইনজুরির পুনর্বাসনে আছেন। আরও বছর দুয়েক খেলতে চান তিনি। ফুটবল ক্যারিয়ার শেষে কোচিং করানোর আগ্রহ রয়েছে এ প্রবাসী ফুটবলারের।

আরও পড়ুন:
হতাশার বৃত্ত পূরণ শেষে দেশে জামালরা
শেষ মুহূর্তের গোলে স্বপ্নভঙ্গ বাংলাদেশের
জয়ের বৃত্ত পূরণে মুখিয়ে মারিও লেমস
১৭ কোটি মানুষের জন্য ট্রফি জিততে চান জামাল
অস্কারে ‘চেতনা’, লেমসে ‘মুক্তি’

শেয়ার করুন

বঙ্গবন্ধু চ্যাম্পিয়নশিপে শেরপুর-মানিকগঞ্জ ম্যাচ ড্র

বঙ্গবন্ধু চ্যাম্পিয়নশিপে শেরপুর-মানিকগঞ্জ ম্যাচ ড্র

ম্যাচের আগে শেরপুরে উদ্বোধনী র‍্যালি। ছবি: নিউজবাংলা

ম্যাচটি ৩-৩ গোলে ড্র হয়। প্রথমার্ধে শেরপুর জেলা দল ৩-১ গোলে এগিয়ে থাকলেও বিরতির পর মানিকগঞ্জ জেলা দল একের পর এক আক্রমণ চালিয়ে দুই গোল করে খেলায় সমতা ফেরায়।

বঙ্গবন্ধু জাতীয় চ্যাম্পিয়নশিপ ২০২১ এ ড্র করেছে শেরপুর জেলা ও মানিকগঞ্জ জেলা দল। মেঘনা গ্রুপের ম্যাচটি অনুষ্ঠিত হয় শেরপুরের শহীদ মুক্তিযোদ্ধা স্মৃতি স্টেডিয়ামে।

ম্যাচটি ৩-৩ গোলে ড্র হয়। শুক্রবার বিকেলে জেলা ফুটবল এ্যাসোসিয়েশনের (ডিএফএ) আয়োজনে ও জেলা ক্রীড়া সংস্থার সহযোগিতায় আয়োজিত হয় এই ম্যাচ। টুর্নামেন্টের ব্যবস্থাপনায় রয়েছে বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন (বাফুফে)।

খেলার প্রথমার্ধে শেরপুর জেলা দল ৩-১ গোলে এগিয়ে থাকলেও বিরতির পর মানিকগঞ্জ জেলা দল একের পর এক আক্রমণ চালিয়ে দুই গোল করে খেলায় সমতা ফেরায়।

কোনো দল আর গোলের দেখা পেলে ড্রতে শেষ হয় ম্যাচ। ৬ ডিসেম্বর শেরপুর জেলা দল মানিকগঞ্জে গিয়ে অ্যাওয়ে ম্যাচ খেলবে।

বঙ্গবন্ধু জাতীয় চ্যাম্পিয়নশীপ ২০২১ এর ম্যাচে মেঘনা গ্রুপে হোম-অ্যাওয়ে ভিত্তিতে আটটি দল খেলছে। শেরপুর ও মানিকগঞ্জ ছাড়া অন্য দলগুলো হলো ময়মনসিংহ, টাংগাইল, গাজীপুর, নেত্রকোনা, জামালপুর ও সিরাজগঞ্জ।

আরও পড়ুন:
হতাশার বৃত্ত পূরণ শেষে দেশে জামালরা
শেষ মুহূর্তের গোলে স্বপ্নভঙ্গ বাংলাদেশের
জয়ের বৃত্ত পূরণে মুখিয়ে মারিও লেমস
১৭ কোটি মানুষের জন্য ট্রফি জিততে চান জামাল
অস্কারে ‘চেতনা’, লেমসে ‘মুক্তি’

শেয়ার করুন

ব্যালন না জেতার আক্ষেপ ভুলে রোনালডোর ৮০০

ব্যালন না জেতার আক্ষেপ ভুলে রোনালডোর ৮০০

প্রথম গোলের পর সতীর্থ অ্যালেক্স তেলেসের সঙ্গে উদযাপন করছেন রোনালডো। ছবি: এএফপি

৭৯৯ গোল নিয়ে ম্যাচ শুরু করা পর্তুগিজ অধিনায়ক ৮০০ গোলের মাইলফলকে পৌঁছান ৫২ মিনিটে। ইতিহাসে প্রথম ফুটবলার হিসেবে আনুষ্ঠানিকভাবে ৮০০ গোল করলেন তিনি।

ফুটবল মাঠে চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী লিওনেল মেসির সপ্তম ব্যালন ডর জেতাটা যেন মেনে নিতে পারছিলেন না ক্রিস্টিয়ানো রোনালডো। মেসির ট্রফি জেতার অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন না এ পর্তুগিজ মেগাস্টার। ‘মিথ্যুক’ বলে গালমন্দ করেছেন ব্যালন ডর কর্তৃপক্ষকেও।

মেসি জেতার পর ফ্যানদের ‘রোনালডো-ই সেরা’ ধরনের পোস্টে নিজের সহমত দিয়েছেন। আর ইন্সটাগ্রামে এক দীর্ঘ পোস্টে জানিয়েছেন ট্রফি জয় নয়, ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের হয়ে পরের ম্যাচের দিকে তার মূল ফোকাস।

স্বাভাবিকভাবেই ব্যালন না জেতায় বেশ তেতে ছিলেন রোনালডো। আর তার পুরো ঝালটা ওঠালেন আর্সেনালের ওপর।

ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগের (ইপিএল) ম্যাচে আর্সেনালকে ৩-২ গোলে হারিয়েছে রোনালডোর ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড। ইউনাইটেডের তিন গোলের দুটিই এসেছে সিআর সেভেনের পা থেকে।

ইউনাইটেডের মাঠ ওল্ড ট্র্যাফোর্ডে আর্সেনাল লিড নিয়ে নেয় দ্রুত। ১৪ মিনিটে এমিল স্মিথ রোয়ের গোলে এগিয়ে যায় অতিথি দল।

বিরতির আগে ব্রুনো ফার্নান্দেস গোল শোধ করে দিলে ১-১ সমতা নিয়ে প্রথমার্ধ শেষ করে দুই দল।

দ্বিতীয়ার্ধের আলো নিজের দিকে কেড়ে নেন রোনালডো। ৭৯৯ গোল নিয়ে ম্যাচ শুরু করা পর্তুগিজ অধিনায়ক ৮০০ গোলের মাইলফলকে পৌঁছান ৫২ মিনিটে।

ইতিহাসে প্রথম ফুটবলার হিসেবে আনুষ্ঠানিকভাবে ৮০০ গোল করলেন তিনি।

তার রেকর্ড গোলে লিড নিলেও স্বস্তি পায়নি ইউনাইটেড। দুই মিনিট পরই মার্টিন ওডেগার্ড স্কোরলাইনকে ২-২ বানিয়ে দেন।

এ অবস্থা থেকে ইউনাইটেডকে আবারও রক্ষা করেন রোনালডো। ৭০ মিনিটে পাওয়া পেনাল্টি থেকে দলের তৃতীয় ও নিজের দ্বিতীয় গোলটি করেন এ ডেড বল স্পেশালিস্ট।

বাকি সময়ে আর কোনো গোল না হওয়ায় ৩-২ ব্যবধানের জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে ইউনাইটেড। এটা ছিল অন্তর্বর্তীকালীন ম্যানেজার মাইকেল ক্যারিকের অধীনে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের শেষ ম্যাচ।

পরের ম্যাচ থেকে দলের দায়িত্ব নিচ্ছেন জার্মান কোচ রালফ রাংগনিক।

আরও পড়ুন:
হতাশার বৃত্ত পূরণ শেষে দেশে জামালরা
শেষ মুহূর্তের গোলে স্বপ্নভঙ্গ বাংলাদেশের
জয়ের বৃত্ত পূরণে মুখিয়ে মারিও লেমস
১৭ কোটি মানুষের জন্য ট্রফি জিততে চান জামাল
অস্কারে ‘চেতনা’, লেমসে ‘মুক্তি’

শেয়ার করুন

চোটে বছর শেষ আর্জেন্টিনার রোমেরোর

চোটে বছর শেষ আর্জেন্টিনার রোমেরোর

ইনজুরিতে মাঠের বাইরে ছিটকে গেলেন আর্জেন্টিনার সেন্টার ব্যাক ক্রিস্টিয়ান রোমেরো। ছবি: এএফপি

গত মাসে ব্রাজিলের বিপক্ষে বিশ্বকাপ বাছাইপর্ব খেলতে গিয়ে চোটে পড়েন রোমেরো। এ কারণে টটেনহ্যামের শেষ দুটি ম্যাচে তিনি দলের বাইরে ছিলেন। এ মাসে স্পার্সরা সব ধরনের প্রতিযোগিতা মিলিয়ে মোট ৯টি ম্যাচ খেলবে।

উরুতে গুরুতর চোটের কারণে আগামী বছর জানুয়ারি-ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত মাঠের বাইরে চলে গেছেন টটেনহ্যাম হটস্পারের সেন্টার-ব্যাক ক্রিস্টিয়ান রোমেরো। স্পার্স কোচ আন্তোনিও কন্তে এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

গত মাসে ব্রাজিলের বিপক্ষে বিশ্বকাপ বাছাইপর্ব খেলতে গিয়ে চোটে পড়েন রোমেরো। এ কারণে টটেনহ্যামের শেষ দুটি ম্যাচে তিনি দলের বাইরে ছিলেন। এ মাসে স্পার্সরা সব ধরনের প্রতিযোগিতা মিলিয়ে মোট ৯টি ম্যাচ খেলবে।

রোমেরোর ইনজুরি প্রসঙ্গে কন্তে বলেছেন, ‘এই খবর আমাদের জন্য মোটেই ইতিবাচক নয়। কারণ, তার ইনজুরিটা গুরুতর। ধারণা করা হচ্ছে পুরোপুরি সুস্থ হয়ে উঠতে তার বেশ কিছুদিন সময় লাগবে। তবে এটা নিশ্চিত যে আগামী বছরের আগে তার মাঠে নামা হচ্ছেনা। প্রতি সপ্তাহে আমরা তার ইনজুরি পর্যবেক্ষণ করছি।

‘এখন সে সুস্থ হয়ে ওঠার সর্বোচ্চ চেষ্টা করছে। তবে এতে অনেক সময় লাগবে। রোমেরো আমাদের দলের একজন গুরুত্বপূর্ণ খেলোয়াড়। তাকে না পাওয়াটা সত্যিই হতাশার।’

এদিকে কন্তে জানিয়েছেন, আন্তর্জাতিক বিরতিতে ইনজুরিতে পড়া মিডফিল্ডার গিওভানি লো সেলসো ক্রমেই সুস্থ হয়ে উঠছেন। দ্রুতই তিনি মাঠে ফিরতে পারবেন। দলের সঙ্গে অনুশীলনও শুরু করেছেন গিওভানি।

১২ ম্যাচ শেষে ১৯ পয়েন্ট নিয়ে প্রিমিয়ার লিগ টেবিলের সপ্তম স্থানে রয়েছে টটেনহ্যাম। ইতালিয়ান কোচ কন্টে দলে যোগ দেবার পর সব ধরনের প্রতিযোগিতায় চার ম্যাচের দুটিতে জয় পেয়েছে স্পার্সরা।

জানুয়ারি ট্রান্সফার উইন্ডোতে নতুন খেলোয়াড় দলভূক্ত করার সম্ভাবনা আছে কি না, এমন প্রশ্নের উত্তরে কন্তে বলেছেন, এখনও এ বিষয় নিয়ে ক্লাব মালিকের সঙ্গে তার আলোচনা হয়নি।

এ মাসে সামনে থাকা বেশ কিছু ম্যাচের দিকেই এখন পুরো দল মনোনিবেশ করতে চায় বলে কন্তে জানিয়েছেন।

আরও পড়ুন:
হতাশার বৃত্ত পূরণ শেষে দেশে জামালরা
শেষ মুহূর্তের গোলে স্বপ্নভঙ্গ বাংলাদেশের
জয়ের বৃত্ত পূরণে মুখিয়ে মারিও লেমস
১৭ কোটি মানুষের জন্য ট্রফি জিততে চান জামাল
অস্কারে ‘চেতনা’, লেমসে ‘মুক্তি’

শেয়ার করুন