ভারতকে ১৫১ রানে আটকে দিল পাকিস্তান

ভারতকে ১৫১ রানে আটকে দিল পাকিস্তান

পাকিস্তান দলের উদযাপন। ছবি: টুইটার

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের মহারণে ভারতকে ১৫১ রানে আটকে দিয়েছে পাকিস্তান। নির্ধারিত ২০ ওভারে ৭ উইকেটের খরচায় ১৫১ রানের পুঁজি নিয়ে মাঠ ছাড়ে কোহলিরা।

ক্রিকেটবিশ্বে ভারত পাকিস্তান ম্যাচ মানে মহারণ। টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের মহারণে ভারতকে ১৫১ রানে বেধে দিয়েছে পাকিস্তান। নির্ধারিত ২০ ওভারে ৭ উইকেটের খরচায় ১৫১ রানের পুঁজি নিয়ে মাঠ ছাড়ে কোহলিরা।

দুবাই আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে টসে জিতে বোলিংয়ের সিদ্ধান্ত নেন পাকিস্তান দলপতি বাবর আজম।

ম্যাচের চতুর্থ বলে শাহিন শাহ আফ্রিদির ইয়র্কার লেন্থের বলে এলবিডব্লিউ হয়ে রানের খাতা খোলার আগে ফেরেন রোহিত শর্মা। এক ওভার পর লোকেশ রাহুলের অফ স্টাম্প উড়িয়ে মাঠ ছাড়া করেন এই পেইসার।

আইপিএলে দুর্দান্ত ফর্মে থাকা সুরিয়াকুমার ইয়াদভও ব্যর্থ হন। হাসান আলির দুর্দান্ত ডেলিভারিতে আউটসাইড এজ হয়ে উইকেটের পেছনে ধরা দিয়ে আউট হন ১১ রানে।

দলের এমন বিপর্যয়ে এগিয়ে আসেন ভিরাট কোহলি। রিশাভ পান্টকে সঙ্গে নিয়ে লড়াই চালিয়ে যেতে থাকেন। গড়েন ৫৩ রানের জুটি। শাদাব খানের কল্যাণে পান্টের বিদায়ে ভাঙ্গে তাদের জুটি। বড় স্কোর করতে ব্যর্থ হন রভিন্দ্র জাডেজা ও হার্দিক পান্ডিয়াও।

এক প্রান্ত আগলে লড়াই চালিয়ে যান কোহলি। তাকে থামতে হয় ৫৭ রানে। পাক বোলারদের নিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ে শেষতক ১৫১ রানে থামে ভারতের ইনিংস।

পাকিস্তানের হয়ে শাহিন আফ্রিদি নেন তিনটি উইকেট। দুই উইকেট নেন হাসান আলি। আর একটি করে উইকেট যায় শাদাব খান ও হারিস রউফের ঝুলিতে।

আরও পড়ুন:
ক্যাচ মিস ও খরুচে বোলিংয়ে হার বাংলাদেশের
বিশ্বকাপের সর্বোচ্চ উইকেট এখন সাকিবের
লঙ্কানদের জন্য বাংলাদেশের ১৭২ রানের চ্যালেঞ্জ
১১ ইনিংস পর মুশফিকের ফিফটি
বিশ্বকাপে দ্বিতীয় ফিফটি নাঈমের

শেয়ার করুন

মন্তব্য

ধনঞ্জয়ার সেঞ্চুরিতে ম্যাচে টিকে থাকল শ্রীলঙ্কা

ধনঞ্জয়ার সেঞ্চুরিতে ম্যাচে টিকে থাকল শ্রীলঙ্কা

রান নিতে ছুটছেন পাথুম নিশঙ্কা ও ধনঞ্জয়া ডি সিলভা। ছবি: এএফপি

দলের ব্যাটিং বিপর্যয়ে দায়িত্বশীল ১৫৩ রানের ইনিংস খেলে দলকে ম্যাচে টিকিয়ে রাখার মূল নায়ক ধনাঞ্জয়া ডি সিলভা। ৫ নম্বরে ব্যাটিংয়ে নামা ধনাঞ্জয়ার ব্যাটে ভর করে টেস্টে টিকে থাকল স্বাগতিকরা।

গল টেস্টের প্রথম ইনিংসে হোঁচট খেলেও দ্বিতীয় ইনিংসে ঘুরে দাঁড়িয়েছে স্বাগতিকরা। ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে সিরিজের প্রথম টেস্টের চতুর্থ দিন শেষে আট উইকেটের খরচায় ৩২৮ রানের সংগ্রহ পেয়েছে শ্রীলঙ্কা। যার ফলে স্বাগতিকদের লিড দাঁড়িয়েছে ২৭৯ রানের।

দলের ব্যাটিং বিপর্যয়ে দায়িত্বশীল ১৫৩ রানের ইনিংস খেলে দলকে ম্যাচে টিকিয়ে রাখার মূল নায়ক ধনাঞ্জয়া ডি সিলভা। ৫ নম্বরে ব্যাটিংয়ে নামা এই ব্যাটসম্যানের ব্যাটে ভর করে টেস্টে টিকে থাকলো স্বাগতিকরা।

দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাট করতে নেমে শুরুতেই করুনারত্নের উইকেট হারায় লঙ্কানরা। এরপর ১৪ রান করেই সাজঘরের পথ ধরেন ফার্নান্দো।

চারিথ আশালঙ্কাও ক্ষান্তি দেন ১৯ রান করে।

দলের এহেন বিপর্যয়ে পাথুম নিশঙ্কা ও ধনঞ্জয়া ডি সিলভা মিলে জুটি গড়ে বিপর্যয় সামলে শক্ত অবস্থানে নিয়ে যান দলকে। যদিও ৬৬ রান করে পাথুম নিশাঙ্কা আউট হলেও উইকেট কামড়ে ধরে বসে থাকেন ডি সিলভা।

দিনেশ চান্ডিমাল ২ রানে, রমেশ মেন্ডিস ২৫ রান করে বিদায় নিলেও অষ্টম উইকেটে লাসিথ এম্বুলদেনিয়া এবং ধনঞ্জয়া ডি সিলভা মিলে দিন শেষ করে দেন।

আরও পড়ুন:
ক্যাচ মিস ও খরুচে বোলিংয়ে হার বাংলাদেশের
বিশ্বকাপের সর্বোচ্চ উইকেট এখন সাকিবের
লঙ্কানদের জন্য বাংলাদেশের ১৭২ রানের চ্যালেঞ্জ
১১ ইনিংস পর মুশফিকের ফিফটি
বিশ্বকাপে দ্বিতীয় ফিফটি নাঈমের

শেয়ার করুন

ঢাকা টেস্টের টিকিট বিক্রি শুরু শুক্রবার

ঢাকা টেস্টের টিকিট বিক্রি শুরু শুক্রবার

গ্যালারিতে দর্শকদের উপস্থিতি। ছবি: এএফপি

সর্বনিম্ন ৫০ টাকা ও সর্বোচ্চ ৫০০ টাকায় মিলবে ঢাকা টেস্টের টিকিট। টি-টোয়েন্টি সিরিজের মতোই টেস্টের টিকিটও বিক্রি করা হবে ইনডোর স্টেডিয়ামে। শুক্রবার সকাল ৯টা থেকে শুরু হবে টিকিট বিক্রির প্রক্রিয়া।

দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজের চট্টগ্রাম পর্ব চুকিয়ে ঢাকা ফিরে এসেছে বাংলাদেশ-পাকিস্তান। সিরিজের শেষ টেস্টটি হবে আগামী ৪ ডিসেম্বর শেরে বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে। আর ঢাকা টেস্টকে সামনে রেখে শুক্রবার থেকে বিক্রি হতে যাচ্ছে ম্যাচের টিকিট।

সর্বনিম্ন ৫০ টাকা ও সর্বোচ্চ ৫০০ টাকায় মিলবে ঢাকা টেস্টের টিকিট। টি-টোয়েন্টি সিরিজের মতোই টেস্টের টিকিটও বিক্রি করা হবে ইনডোর স্টেডিয়ামে।

মাঠের ইস্টার্ন গ্যালারির টিকিটের মূল্য ধরা হয়েছে ৫০ টাকা। সাউদার্ন ও নর্দান গ্যালারির টিকিটের মূল্য ধরা হয়েছে ১০০ টাকা।

ক্লাব হাউজ অর্থ্যাৎ শহীদ জুয়েল স্ট্যান্ড ও শহীদ মুশতাক স্ট্যান্ডের টিকিটের মূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে ২০০ টাকা।

ভিআইপি স্ট্যান্ডের টিকিট মিলবে ৩০০ টাকায় আর গ্র্যান্ড স্ট্যান্ডের টিকিটের মূল্য ধরা হয়েছে ৫০০ টাকা।

শুক্রবার সকাল ৯টা থেকে শুরু হবে টিকিট বিক্রির প্রক্রিয়া।

টি-টোয়েন্টি সিরিজের মতো টেস্ট সিরিজেও মাঠে প্রবেশের সময় দেখাতে হবে করোনা প্রতিরোধী টিকার সনদ।

আরও পড়ুন:
ক্যাচ মিস ও খরুচে বোলিংয়ে হার বাংলাদেশের
বিশ্বকাপের সর্বোচ্চ উইকেট এখন সাকিবের
লঙ্কানদের জন্য বাংলাদেশের ১৭২ রানের চ্যালেঞ্জ
১১ ইনিংস পর মুশফিকের ফিফটি
বিশ্বকাপে দ্বিতীয় ফিফটি নাঈমের

শেয়ার করুন

বিপিএল শুরু ২০ জানুয়ারি

বিপিএল শুরু ২০ জানুয়ারি

ফাইল ছবি

সব কিছু ঠিক থাকলে আগামী বছর ২৮ জানুয়ারি মাঠে গড়াবে ফ্র্যাঞ্চাইজিভিত্তিক টি-টোয়েন্টি টুর্নামেন্ট বিপিএল।

কোভিড পরিস্থিতিতে গতবছর বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি) আয়োজন করতে পারেনি বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের (বিপিএল) আসর। তবে করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক হতে শুরু করায় বিসিবি আগামী বছর আয়োজন করতে যাচ্ছে টুর্নামেন্টটি।

সব কিছু ঠিক থাকলে আগামী বছর ২৮ জানুয়ারি মাঠে গড়াবে ফ্র্যাঞ্চাইজিভিত্তিক টি-টোয়েন্টি টুর্নামেন্টটি।

বিপিএলের সর্বশেষ আসরের মতো আগামী বছর অনুষ্ঠিতব্য আসরটির নামকরণ করা হয়েছে ‘বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ টি-টোয়েন্টি’ নামে। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষ্যে তার প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে দ্বিতীয়বারের মতো বিশেষ বিপিএল আয়োজন করতে যাচ্ছে বোর্ড।

বৃহস্পতিবার সংবাদমাধ্যমকে বিষয়টি নিশ্চিত করেন বিসিবির প্রধান নির্বাহী নিজামউদ্দিন চৌধুরী সুজন।

সুজন বলেন, ‘এখন পর্যন্ত যেটা সিদ্ধান্ত হয়েছে, ২০ জানুয়ারি থেকে ২০ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত বিপিএলের স্লট রাখা আছে। এর মধ্যেই আমরা শেষ করব।’

সাম্প্রতিক সময়ে করোনাভাইরাসের নতুন একটি ভ্যারিয়েন্ট শনাক্ত হওয়ায় কিছুটা শঙ্কায় পরতে পারে বিপিএলের অষ্টম আসরটি। কিন্তু বোর্ডের প্রধান নির্বাহী শঙ্কার বিষয়টি উড়িয়ে দিয়েছেন।

বাংলাদেশে এখন পর্যন্ত নতুন ভ্যারিয়েন্ট ‘ওমিক্রন’ আক্রান্ত কোন ব্যক্তি শনাক্ত না হওয়ায় বিপিএলের আয়োজন নিয়ে কোন শঙ্কা দেখছেন না তিনি।

সুজন বলেন, ‘আমার দেশে তো স্বাভাবিকভাবে চলছে। ওটার (ওমিক্রন) প্রভাব সেভাবে পড়ে নাই। যদি সরকারের কাছ থেকে পরে কোনো নিষেধাজ্ঞা আসে বিদেশি দলের ভ্রমণের ব্যাপারে। তখন বিষয়টাকে এখন যেভাবে চিন্তা করছি, তখন হয়তো কিছু ফাইন টিউনিং করতে হবে।’

বোর্ডের দেয়া তথ্যমতে, এবারের আসরটি হবে ছয়টি দল নিয়ে। আগের আসরটি সাত দলের হলেও এবারে একদল কমিয়ে আনার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

আগের মতোই সম্ভাব্য ভেন্যু হতে পারে মিরপুর, চট্টগ্রাম ও সিলেট।

আরও পড়ুন:
ক্যাচ মিস ও খরুচে বোলিংয়ে হার বাংলাদেশের
বিশ্বকাপের সর্বোচ্চ উইকেট এখন সাকিবের
লঙ্কানদের জন্য বাংলাদেশের ১৭২ রানের চ্যালেঞ্জ
১১ ইনিংস পর মুশফিকের ফিফটি
বিশ্বকাপে দ্বিতীয় ফিফটি নাঈমের

শেয়ার করুন

ভারতের বিপক্ষে হ্যাটট্রিক জয় যুবাদের

ভারতের বিপক্ষে হ্যাটট্রিক জয় যুবাদের

ফাইল ছবি

বাংলাদেশের দেয়া ২৩০ রানের জবাবে ব্যাট করতে নেমে মেহেরব ও তানজিম সাকিবের বোলিং নৈপুণ্যে ভারতকে ২২৪ রানে গুটিয়ে দিয়ে হ্যাটট্রিক জয় নিয়ে মাঠ ছাড়েন যুবারা।

বড়রা যখন হারের বৃত্ত থেকে বের হতে খাবি খাচ্ছেন, ঠিক বিপরীত চিত্র তখন যুবাদের দলে। ভারতের অনূর্ধ্ব-১৯ দলের বিপক্ষে টানা তৃতীয় জয় তুলে নিয়েছেন বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-১৯ দলের ক্রিকেটাররা।

বৃহস্পতিবার শেষ ওভারের রোমাঞ্চে ৬ রানের জয় নিয়ে মাঠ ছেড়েছেন বিশ্বকাপজয়ী যুবারা।

বাংলাদেশের দেয়া ২৩০ রানের জবাবে ব্যাট করতে নেমে মেহেরব ও তানজিম সাকিবের বোলিং নৈপুণ্যে ভারতকে ২২৪ রানেই গুটিয়ে দিয়ে হ্যাটট্রিক জয় নিয়ে মাঠ ছাড়েন বাংলাদেশ।

ইডেন গার্ডেনসে টসে হেরে ব্যাট করতে নেমে মাহফিজুলের ৫৬, নওরোজ নাবিলের ৬২, ফাহিমের ২১, নাইমুরের ২০ ও ইফতেখারের ১৫ রানে ভর করে ২৩০ রানের পুঁজি দাঁড় করায় বাংলাদেশ।

ভারতের পক্ষে ৫৩ রানের খরচায় ৫ উইকেট নেন রিশিথ। পাশাপাশি ২টি করে উইকেট নিয়েছেন গার্ভ আর নিশান্ত।

জবাবে ব্যাটিংয়ে নেমে শুরুতে হোঁচট খায় স্বাগতিকরা। দলীয় ১০ রানেই ওপেনার হারনুরকে ফিরে যেতে হয় সাজঘরে।

এরপর ইনিংস মেরামতের দায়িত্ব কাঁধে তুলে নেন অংকৃশ। ভারতকে জয়ের স্বপ্ন দেখাতে থাকেন।

কিন্তু অংকৃশের সেই স্বপ্ন ভেঙ্গে দেন রিপন। ৮৮ রানে তাকে সাজঘরের পথ দেখিয়ে আনেন ব্রেক থ্রু।

শেষ ওভারে জয়ের জন্য ভারতের প্রয়োজন ছিল ৮ রান আর বাংলাদেশের ২ উইকেট। সেই সময় ৪ বলেই দুটি উইকেট তুলে নিয়ে বাংলাদেশকে টানা তৃতীয় জয়ের স্বাদ দেন তানজিম সাকিব।

২৯ রানের খরচায় সাকিব নেন ৩ উইকেট। পাশাপাশি ৩ উইকেট যায় মেহরবের ঝুলিতে।

আরও পড়ুন:
ক্যাচ মিস ও খরুচে বোলিংয়ে হার বাংলাদেশের
বিশ্বকাপের সর্বোচ্চ উইকেট এখন সাকিবের
লঙ্কানদের জন্য বাংলাদেশের ১৭২ রানের চ্যালেঞ্জ
১১ ইনিংস পর মুশফিকের ফিফটি
বিশ্বকাপে দ্বিতীয় ফিফটি নাঈমের

শেয়ার করুন

৯ ডিসেম্বর নিউজিল্যান্ডের বিমানে চাপবেন মুমিনুলরা

৯ ডিসেম্বর নিউজিল্যান্ডের বিমানে চাপবেন মুমিনুলরা

ফাইল ছবি

নিউজিল্যান্ডে গিয়ে ১৪ দিনের বাধ্যতামূলক রুম কোয়ারেন্টিনে থাকার কথা থাকলেও সেটিতে শিথিলতা এনেছে নিউজিল্যান্ড ক্রিকেট বোর্ড। ১৪ দিনের জায়গায় টাইগারদের কোয়ারেন্টিনে থাকতে হবে তিন থেকে চার দিন।

পহেলা জানুয়ারি থেকে মাঠে গড়াতে যাচ্ছে বাংলাদেশ বনাম নিউজিল্যান্ডের দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজটি। আর সেই সিরিজে অংশ নিতে আগামী ৯ ডিসেম্বর দেশ ছাড়বেন ডমিঙ্গো শিষ্যরা।

পাকিস্তানের বিপক্ষে টেস্ট সিরিজের শেষ ম্যাচটি মাঠে গড়াতে যাচ্ছে আগামী ৪ ডিসেম্বর। ৮ ডিসেম্বর শেষ হওয়ার কথা রয়েছে সিরিজটির। এই সিরিজটি শেষ করেই নিউজিল্যান্ডের বিমানে চাপবে বাংলাদেশ।

নিউজিল্যান্ডে গিয়ে ১৪ দিনের বাধ্যতামূলক রুম কোয়ারেন্টিনে থাকার কথা থাকলেও সেটিতে শিথিলতা এনেছে নিউজিল্যান্ড ক্রিকেট বোর্ড। ১৪ দিনের জায়গায় টাইগারদের কোয়ারেন্টিনে থাকতে হবে তিন থেকে চার দিন।

সংবাদমাধ্যমকে বৃহস্পতিবার এমনটাই জানিয়েছেন বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের প্রধান নির্বাহী নিজামউদ্দিন চৌধুরী সুজন।

সুজন বলেন, ‘আমাদের সর্বশেষ নিউজিল্যান্ড সিরিজে যে প্রটোকল ছিল, সেটা থেকেও কিছুটা শিথিল করা হয়েছে। তিন থেকে চারদিনের রুম কোয়ারেন্টিন করতে হবে।’

কোয়ারেন্টিন সময়কাল কমে আসায় বাংলাদেশ কিউইদের বিপক্ষে মাঠে নামার আগে সুযোগ পাবে দুটি প্রস্তুতি ম্যাচ খেলার। এর একটি বাংলাদেশ খেলবে আন্ত স্কোয়াড আর অপরটি খেলবে নিউজিল্যান্ড ইলেভেনের সঙ্গে।

সুজন এ প্রসঙ্গে বলেন, ‘আমাদের কিছু বাড়তি সুযোগ এসেছে। আমাদের দল দুটি অনুশীলন ম্যাচ খেলার সুযোগ পাচ্ছে। দুটি দুদিনের অনুশীলন ম্যাচ হবে।’

তিনি আরে বলেন, ‘একটা নিজেদের মধ্যে, আরেকটা নিউজিল্যান্ড ইলেভেনের সঙ্গে। দুটি প্র্যাক্টিস ম্যাচ খেলার পর বাংলাদেশ দল সরাসরি টেস্ট খেলবে।’

আরও পড়ুন:
ক্যাচ মিস ও খরুচে বোলিংয়ে হার বাংলাদেশের
বিশ্বকাপের সর্বোচ্চ উইকেট এখন সাকিবের
লঙ্কানদের জন্য বাংলাদেশের ১৭২ রানের চ্যালেঞ্জ
১১ ইনিংস পর মুশফিকের ফিফটি
বিশ্বকাপে দ্বিতীয় ফিফটি নাঈমের

শেয়ার করুন

ভারতের বিপক্ষে টাইগার ‍যুবাদের বড় জয়

ভারতের বিপক্ষে টাইগার ‍যুবাদের বড় জয়

ফাইল ছবি।

ভারতের অনূর্ধ্ব-১৯ বি-দলের বিপক্ষে বিশাল জয় তুলে নিয়েছে বাংলাদেশের যুবারা। ১১৩ রানে জয় পেয়েছে জুনিয়র টাইগাররা। অনবদ্য সেঞ্চুরি উপহার দেন বাংলাদেশের নওরোজ প্রান্তিক।

প্রথম ম্যাচে জয়ের পর ট্রায়াঙ্গুলার সিরিজের দ্বিতীয় ম্যাচেও ভারতের অনূর্ধ্ব-১৯ বি-দলের বিপক্ষে বিশাল জয় তুলে নিয়েছে বাংলাদেশের যুবারা। ১১৩ রানে জয় পেয়েছে জুনিয়র টাইগাররা।

অনবদ্য সেঞ্চুরি উপহার দেন বাংলাদেশের নওরোজ প্রান্তিক।

আগামী বছরের অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপে শিরোপা ধরে রাখার লড়াইয়ে মাঠে নামার আগে প্রস্তুতি সারছে বাংলাদেশ। ঘরের মাঠে আফগানিস্তান সিরিজ শেষে এখন ত্রিদেশীয় সিরিজ।

কলকাতার ইডেন গার্ডেনসে টস জিতে প্রথমে ব্যাট করতে নেমে ভালো শুরু করে বাংলাদেশ।

ওপেনার ইফতেখার হোসেইনের ৫৭, প্রান্তিকের ১০১ রানের অনবদ্য ইনিংস আর মেহেরব হাসানের ৭০ রানের অপরাজিত ফিফটিতে ছয় উইকেটে ৩০৫ রান তোলে বাংলাদেশ।

পাহাড়সম টার্গেটে নেমে ধারাবাহিকভাবে উইকেট হারাতে থাকে ভারত। দলের সর্বোচ্চ ইনিংস আসে কুশল তাম্বের ব্যাট থেকে। তার ৪২ ছাড়া কেউই বাংলাদেশের বোলারদের দাপটের সামনে ব্যাট হাতে দাঁড়িয়ে থাকতে পারেনি।

দলীয় ১৯২ রানে অলআউট হয়ে যায় ভারত। একাই চার উইকেট তুলে নেন বাংলাদেমের আরিফুল ইসলাম। দুটি উইকেট পান নয়ন। একটি করে উইকেট তুলে নেন আশিক, সাকিব, মেহেরব ও অধিনায়ক রাকিব।

আরও পড়ুন:
ক্যাচ মিস ও খরুচে বোলিংয়ে হার বাংলাদেশের
বিশ্বকাপের সর্বোচ্চ উইকেট এখন সাকিবের
লঙ্কানদের জন্য বাংলাদেশের ১৭২ রানের চ্যালেঞ্জ
১১ ইনিংস পর মুশফিকের ফিফটি
বিশ্বকাপে দ্বিতীয় ফিফটি নাঈমের

শেয়ার করুন

২৪ ধাপ উন্নতি লিটনের, সেরা ২০-এ মুশফিক

২৪ ধাপ উন্নতি লিটনের, সেরা ২০-এ মুশফিক

বাংলাদেশের হয়ে উইকেটে লিটন-মুশফিক জুটি। ছবি: এএফপি

চট্টগ্রামে প্রথম ইনিংসে ক্যারিয়ার সেরা ১১৪ রানের ইনিংস খেলার পর দ্বিতীয় ইনিংসে ৫৯ রান করেন তিনি। অনবদ্য এ পারফরম্যান্সের পুরস্কারও পেয়েছেন লিটন। এ উইকেটকিপার ব্যাটার ২৪ ধাপ এগিয়ে আছেন ৩১ নম্বরে।

পাকিস্তানের বিপক্ষে চট্টগ্রাম টেস্টে বাংলাদেশ হারলেও ব্যক্তিগত নৈপূণ্যের স্বীকৃতি পেয়েছেন টাইগারদের সেরা তিন পারফরমার। লিটন দাস, মুশফিকুর রহিম ও তাইজুল ইসলামের উন্নতি হয়েছে আইসিসি টেস্ট র‍্যাঙ্কিংয়ে।

আইসিসির বুধবার প্রকাশিত হালনাগাদ করা র‍্যাঙ্কিংয়ে বাংলাদেশি ব্যাটারদের মধ্যে সবচেয়ে এগিয়ে মুশফিকুর রহিম। পাকিস্তানের বিপক্ষে চট্টগ্রাম টেস্টের প্রথম ইনিংসে ৯১ রান করা এ অভিজ্ঞ তারকা আছেন ১৯ নম্বরে। আগের অবস্থানের চেয়ে তিন ধাপ এগিয়েছেন তিনি।

সবচেয়ে উন্নতি হয়েছে লিটন দাসের। চট্টগ্রামে প্রথম ইনিংসে ক্যারিয়ার সেরা ১১৪ রানের ইনিংস খেলার পর দ্বিতীয় ইনিংসে ৫৯ রান করেন তিনি। অনবদ্য এ পারফরম্যান্সের পুরস্কারও পেয়েছেন লিটন। এ উইকেটকিপার ব্যাটার ২৪ ধাপ এগিয়ে আছেন ৩১ নম্বরে।

আর বোলারদের মধ্যে বাংলাদেশে সবার ওপরে আছেন তাইজুল ইসলাম। চট্টগ্রাম টেস্টের দুই ইনিংসে ৮ উইকেট নেয়া এ স্পিনার তিন ধাপ এগিয়ে আছেন ২৩ নম্বরে।

আর বাংলাদেশের বিপক্ষে ম্যান অফ দ্য ম্যাচ হওয়া আবিদ আলি উন্নতি করেছেন ২৮ ধাপ। ২০ নম্বরে আছেন এ পাকিস্তানি ওপেনার।

আইসিসি টেস্ট র‍্যাঙ্কিংয়ের ব্যাটিং, বোলিং ও অলরাউন্ডার র‍্যাঙ্কিংয়ের সেরা তিন অবস্থানে আছেন জো রুট, প্যাট কামিন্স ও জেসন হোল্ডার।

আরও পড়ুন:
ক্যাচ মিস ও খরুচে বোলিংয়ে হার বাংলাদেশের
বিশ্বকাপের সর্বোচ্চ উইকেট এখন সাকিবের
লঙ্কানদের জন্য বাংলাদেশের ১৭২ রানের চ্যালেঞ্জ
১১ ইনিংস পর মুশফিকের ফিফটি
বিশ্বকাপে দ্বিতীয় ফিফটি নাঈমের

শেয়ার করুন