ইতিহাস তৈরি করতে চান জামাল

ইতিহাস তৈরি করতে চান জামাল

ছবি: বাফুফে

নেপালের বিপক্ষে ম্যাচ সামনে রেখে মঙ্গলবার সংবাদ সম্মেলনে জামাল বলেন, ‘আগে কি হয়েছিল সেটা আর মনে করতে চাই না। আমরা সামনে এগিয়ে যেতে চাই। আমাদের এই দলটা ভালো। লিগের সেরা খেলোয়াড়রা এই দলে রয়েছে। আমরা ইতিহাস তৈরি করতে পারি।'

সাফ ফুটবলের ফাইনালে খেলতে এখন একটাই সমীকরণ বাংলাদেশের সামনে। নেপালকে হারানোর কোনো বিকল্প অবশিষ্ট নাই লাল-সবুজদের। মালদ্বীপের কাছে হারের পর চার দিনের বিশ্রাম নিয়ে দল এখন চাঙা। এই দলকে নিয়ে নেপালকে হারানোর আত্মবিশ্বাস জাতীয় ফুটবল দলের অধিনায়ক জামাল ভূঁইয়ার।

নেপালের বিপক্ষে ম্যাচ সামনে রেখে মঙ্গলবার সংবাদ সম্মেলনে জামাল বলেন, ‘আগে কী হয়েছে সেটা মনে করতে চাই না, এগিয়ে যেতে চাই। এই দলটা ভালো। লিগের সেরা খেলোয়াড়রা এই দলে রয়েছে। আমরা ইতিহাস তৈরি করতে পারি।’

নেপালকে হারাতে হলে গোল করতে হবে বাংলাদেশকে। সাম্প্রতিক রেকর্ড বলছে গোল না করা নিয়মিত রোগের নাম হয়ে দাঁড়িয়েছে জামালের দলের জন্য। নেপাল ম্যাচে গোলের সংকট কোনো ইস্যু হবে না মনে করছেন জামাল।

অধিনায়ক বলেন, ‘গোলের সংকট বা স্কোরিং নিয়ে সমস্যা এটা মিডিয়ার কথা। আমি কোনো সংকট দেখি না। ১১ জনের মধ্যে যে কেউ গোল করতে পারে। বাংলাদেশ দলের হয়ে যে কেউ গোল করলেই হয়।’

এই ম্যাচে দলকে অনুপ্রেরণা দিতে মালদ্বীপে অবস্থিত বাংলাদেশিদের সমর্থন চান জামাল ভূঁইয়া।

তিনি বলেন, ‘মালদ্বীপে আমরা অনেক সমর্থন পাচ্ছি। আশা করি পরের ম্যাচেও এর ধারাবাহিকতা থাকবে। মালদ্বীপ ম্যাচ খুব কম টিকিট পেয়েছিল বাংলাদেশিরা। এই ম্যাচে অনেকে আসবে, সবাই সমর্থন দেবে।’

বুধবার মালের জাতীয় স্টেডিয়ামে বিকেল পাঁচটায় নেপালের বিপক্ষে মাঠে নামবে বাংলাদেশ।

আরও পড়ুন:
বিশ্রাম শেষে নেপাল ম্যাচের আগে সতেজ ফুটবলাররা
ফাইনালের আশা হারায়নি বাংলাদেশ
ক্লান্তির কাছে হেরেছি: ব্রুজন
আশা জাগিয়েও মালদ্বীপের কাছে হার বাংলাদেশের
প্রথমার্ধে আশা জাগানো ফুটবল বাংলাদেশের

শেয়ার করুন

মন্তব্য

পিএসজিতে বিচ্ছিন্ন মেসি: অঁরি

পিএসজিতে বিচ্ছিন্ন মেসি: অঁরি

মার্সেইয়ের বিপক্ষে ম্যাচে মেসি। ছবি: এএফপি

২০০৭ থেকে ২০১০ সাল পর্যন্ত মেসির সঙ্গে বার্সায় খেলেন অঁরি। তার দাবি, পিএসজির এই দলটাকে সাজানো হয় এমবাপেকে ঘিরে। দলটাকে আরও বেশি মেসিকেন্দ্রিক করা উচিত বলে মনে করেন অঁরি।

ইউয়েফা চ্যাম্পিয়নস লিগে প্যারিস সেইন্ট জার্মেইয়ের (পিএসজি) জার্সিতে গোলের দেখা পেলেও লিগ ওয়ানে গোলের খরা কাটছে না লিওনেল মেসির। গত চার ম্যাচে গোলের দেখা পাননি এই আর্জেন্টাইন মহাতারকা। বিষয়টি নিয়ে সরগরম বিশ্ব ফুটবল।

এমন অবস্থায় মেসির পক্ষে অবস্থান নিয়েছেন তার সাবেক বার্সেলোনা সতীর্থ থিয়েরি অঁরি। ফরাসি এই তারকা স্ট্রাইকারের মতে, পিএসজিতে বিচ্ছিন্ন করা হয়েছে মেসিকে। তার কাছ থেকে আরও অনেক কিছু পেতে পারে পিএসজি।

অঁরি বলেন, ‘মেসিকে বিচ্ছিন্ন করে রাখা হয়েছে। তাকে বল দেয়া হয় কম। আমি বলব না, মেসি এ জন্য দুঃখে আছে। তবে সে বিচ্ছিন্ন। আমি তাকে মিডফিল্ডে দেখতে চাই।’

আরআমসি স্পোর্টসকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে তিনি এমনটা বলেন। এ সময় দলে মেসির পজিশন নিয়ে পিএসজির কোচ মরিসিও পচেত্তিনোর সিদ্ধান্ত নিয়েও প্রশ্ন তোলেন হেনরি।

সাবেক এই বার্সা তারকা বলেন, ‘ডান পাশে মেসির অবস্থান আমার কাছে সমস্যার মনে হয়েছে। তাকে মিডফিল্ডে দেয়া হলে সে পুরো ছন্দ ধরে খেলাতে পারবে। এমবাপে, নেইমার ও মেসিকে একসঙ্গে খেলাতে কিছু একটা দরকার দলে।’

২০০৭ থেকে ২০১০ সাল পর্যন্ত মেসির সঙ্গে বার্সায় খেলেন অঁরি। তার দাবি, পিএসজির এই দলটাকে সাজানো হয় এমবাপেকে ঘিরে। দলটাকে আরও বেশি মেসিকেন্দ্রিক করা উচিত বলে মনে করেন অঁরি।

তিনি বলেন, ‘মেসি খুব বেশি কথা বলে না। তার বল কথা বলে। এখন দলটা এমবাপের। এমবাপে দলে সবচেয়ে বেশি আলো ছড়াচ্ছে। তাকে বেশি বল দেয়া হয়।

‘কোনো এক মুহূর্তে দলে কেবল একজন পথপ্রদর্শক দরকার। না হলে একই টেম্পোতে খেলানো কঠিন। আর এই দলে অনেক পথপ্রদর্শক।’

আরও পড়ুন:
বিশ্রাম শেষে নেপাল ম্যাচের আগে সতেজ ফুটবলাররা
ফাইনালের আশা হারায়নি বাংলাদেশ
ক্লান্তির কাছে হেরেছি: ব্রুজন
আশা জাগিয়েও মালদ্বীপের কাছে হার বাংলাদেশের
প্রথমার্ধে আশা জাগানো ফুটবল বাংলাদেশের

শেয়ার করুন

প্রথম ম্যাচে বাংলাদেশকে জয় এনে দিতে চান ইউসুফ

প্রথম ম্যাচে বাংলাদেশকে জয় এনে দিতে চান ইউসুফ

অনুশীলনে ইউসুফ হক। ছবি: বাফুফে

লাল-সবুজের স্বপ্নে বিভোর হয়ে ইংল্যান্ড থেকে বাংলাদেশে উড়ে আসেন ইউসুফ। ট্রায়ালে নিজেকে প্রমাণ করে চূড়ান্ত দলে জায়গা করে নেন। এখন অফিসিয়াল ম্যাচে জার্সিটা গায়ে চাপানোর শুধু অপেক্ষা।

কাঙ্ক্ষিত প্রথম অপেক্ষার শেষ হয়েছে। ট্রায়াল টিকে গেছেন। অনূর্ধ্ব-২৩ জাতীয় ফুটবল দলের সঙ্গে লাল-সবুজ জার্সি গায়ে চাপানোর অপেক্ষায় আছেন ইউসুফ জুলকারনাইন হক। মূল ম্যাচে সুযোগ পেলে নিজের প্রথম ম্যাচে বাংলাদেশকে জয় উপহার দিতে চান ইংল্যান্ডে খেলা বাংলাদেশি এই প্রবাসী স্ট্রাইকার।

সোমবার উজবেকিস্তানে দলের সঙ্গে অনুশীলন শেষে এমন ইচ্ছার কথাই এক ভিডিও বার্তায় জানিয়েছেন ইউসুফ।

এই স্ট্রাইকার বলেন, ‘সামনের প্রতিপক্ষ অনেক কঠিন। যদি আমি সুযোগ পাই, প্রথম আন্তর্জাতিক ম্যাচ হবে বাংলাদেশের জার্সিতে। চেষ্টা করব প্রথম ম্যাচে দেশকে জয় উপহার দিতে। বাংলাদেশের হয়ে আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলা অনেক গর্বের।’

লাল-সবুজের স্বপ্নে বিভোর হয়ে ইংল্যান্ড থেকে বাংলাদেশে উড়ে আসেন ইউসুফ। ট্রায়ালে নিজেকে প্রমাণ করে চূড়ান্ত দলে জায়গা করে নেন। এখন অফিসিয়াল ম্যাচে জার্সিটা গায়ে চাপানোর শুধু অপেক্ষা। তবে পুরো এই প্রক্রিয়ার যাত্রা দারুণ এনজয় করেছেন এবং দলের সবাই তাকে সহযোগিতা করছেন বলে জানান ইউসুফ।

ইংল্যান্ডের দল ইপ্সউইচ টাউন এফসির হয়ে খেলা এই ফরোয়ার্ড বলেন, ‘জার্নিটা দারুণ যাচ্ছে। সকল খেলোয়াড়-কোচরা আমাকে সহযোগিতা করছেন। আমি মুহূর্তগুলো সুন্দরভাবে এনজয় করছি। আমি বলব সকল সমর্থকরা যারা আমাকে সমর্থন করে গেছে তাদের ধন্যবাদ জানাই। সবার এই সমর্থন আমাকে আরও ভালো করতে উৎসাহ দিচ্ছে।’

এমন উৎসাহ নিয়েই এএফসি অনূর্ধ্ব-২৩ এশিয়ান কাপের প্রথম ম্যাচে কুয়েতের বিপক্ষে জয় পাবে বাংলাদেশ বিশ্বাস ইউসুফের।

তিনি বলেন, ‘সামনের ম্যাচগুলো কঠিন হতে চলেছে। আমি আমার দলের প্রতি বিশ্বাস রাখি। দলের সকল খেলোয়াড়ই অনেক পরিশ্রম করছে। আমরা জানি প্রত্যাশা অনেক বড়। কিন্তু আমি বিশ্বাস করি এই দলটা জিততে পারবে।

‘প্রতিটা ম্যাচেই এই মানসিকতা নিয়ে খেলব ইনশাল্লাহ। আমরা যদি কঠোর পরিশ্রম করি তাহলে অবশ্যই ফল পাব।’

দলের কোচ মারুফুল হকের উপর পূর্ণ আস্থা রয়েছে ইউসুফের। মনে করেন, মারুফের কৌশল কার্যকর করতে পারলে ফল আশা সম্ভব।

ইউসুফের কথায়, ‘আমরা কোচের উপর পূর্ণ আস্থা রাখছি। তার দর্শন-কৌশল ভালো।’

আগামী ২৭ অক্টোবর কুয়েতের বিপক্ষে মাঠে নামবে বাংলাদেশ।

আরও পড়ুন:
বিশ্রাম শেষে নেপাল ম্যাচের আগে সতেজ ফুটবলাররা
ফাইনালের আশা হারায়নি বাংলাদেশ
ক্লান্তির কাছে হেরেছি: ব্রুজন
আশা জাগিয়েও মালদ্বীপের কাছে হার বাংলাদেশের
প্রথমার্ধে আশা জাগানো ফুটবল বাংলাদেশের

শেয়ার করুন

খেলায় জুয়া ঠেকাতে ফৌজদারি মামলা কেন নয়: হাইকোর্ট

খেলায় জুয়া ঠেকাতে ফৌজদারি মামলা কেন নয়: হাইকোর্ট

ম্যাচ পাতানো, জুয়াসহ নানান অভিযোগ রয়েছে আরামবাগ ক্রীড়া সংঘের বিরুদ্ধে। ফাইল ছবি

ব্যারিস্টার সুমন বলেন, ‘আপনি ফুটবলের নাম দিয়ে ১ হাজার কোটি টাকা লুটপাট করবেন, জুয়া খেলবেন, মানি লন্ডারিং করবেন; এদের বিরুদ্ধে যদি ক্রিমিনাল কোনো ব্যবস্থা না নেন, বা কেউ যদি মামলা না করে, তাহলে সে মনে করবে, আমি ফুটবল না খেললাম, ব্যান থাকলাম, কিন্তু এক হাজার কোটি টাকা তো বানিয়ে ফেলতে পারলাম।’

বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগে স্পট ফিক্সিং ও অনলাইন বেটিং বা জুয়ায় জড়িত থাকার অভিযোগ ওঠা আরামবাগ ক্রীড়া সংঘের কর্মকর্তার বিরুদ্ধে কেন ফৌজদারি মামলা করা হবে না, তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেছে হাইকোর্ট।

এ সংক্রান্ত এক আবেদনের পর সোমবার বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি মো. মোস্তাফিজুর রহমানের হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেয়।

আদালতে রিটের পক্ষে শুনানি করেন ব্যারিস্টার সৈয়দ সায়েদুল হক সুমন। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল বিপুল বাগমার।

ব্যারিস্টার সুমন জানান, ক্রীড়া সচিব ও বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন কর্তৃপক্ষকে রুলের জবাব দিতে বলা হয়েছে।

আরামবাগ ক্রীড়া সংঘের কর্মকর্তাদের স্পট ফিক্সিংয়ে জড়িত থাকার বিষয়ে বিভিন্ন পত্রিকায় প্রতিবেদন প্রকাশ হয়। বিষয়টি তুলে আদালতের নজরে আনেন আইনজীবী সুমন।

তিনি বলেন, ‘আপনি ফুটবলের নাম দিয়ে ১ হাজার কোটি টাকা লুটপাট করবেন, জুয়া খেলবেন, মানি লন্ডারিং করবেন; এদের বিরুদ্ধে যদি ক্রিমিনাল কোনো ব্যবস্থা না নেন, বা কেউ যদি মামলা না করে, তাহলে সে মনে করবে, আমি ফুটবল না খেললাম, ব্যান থাকলাম, কিন্তু এক হাজার কোটি টাকা তো বানিয়ে ফেলতে পারলাম।’

সুমন বলেন, ‘এসব অপরাধীকে যাতে ফৌজদারি মামলার আওতায় আনা হয়, সে কারণে আমি হাইকোর্টে আবেদন করি। আদালত শুনানি নিয়ে আজ এ আদেশ দিয়েছেন।’

আরামবাগ ক্রীড়া সংঘ নিয়ে পত্রিকায় প্রকাশিত প্রতিবেদনে বলা হয়, গত ২৬ আগস্ট বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগে স্পট ফিক্সিংয়ে জড়িত থাকার অভিযোগে আরামবাগ ক্রীড়া সংঘকে দুই বছরের জন্য প্রথম বিভাগে নামিয়ে দেয়া হয়। সে সঙ্গে ক্লাবটির চারজন কর্মকর্তাকে আজীবন নিষিদ্ধ করে ডিসিপ্লিনারি কমিটি।

তার আগে আরামবাগ ক্রীড়া সংঘের অনৈতিক কার্যকলাপের প্রমাণ পেয়েছিল এশিয়ান ফুটবল কনফেডারেশনও।

এএফসির নির্দেশনা পেয়েই বাফুফে ক্লাবটির বিরুদ্ধে অধিকতর তদন্ত করে। বাফুফের পাতানো খেলা শনাক্তকরণ কমিটি সরকারের বিভিন্ন সংস্থার সহযোগিতা নিয়ে নানা তথ্য-উপাত্ত এবং ক্লাবের খেলোয়াড় ও কর্মকর্তাদের মোবাইল কথোপকথনের ফরেনসিক প্রতিবেদনে স্পট ফিক্সিংয়ের প্রমাণ পায়।

আরও পড়ুন:
বিশ্রাম শেষে নেপাল ম্যাচের আগে সতেজ ফুটবলাররা
ফাইনালের আশা হারায়নি বাংলাদেশ
ক্লান্তির কাছে হেরেছি: ব্রুজন
আশা জাগিয়েও মালদ্বীপের কাছে হার বাংলাদেশের
প্রথমার্ধে আশা জাগানো ফুটবল বাংলাদেশের

শেয়ার করুন

সিনিয়র দলে খেলার সুযোগ আছে ইউসুফের

সিনিয়র দলে খেলার সুযোগ আছে ইউসুফের

ছবি: সংগৃহীত

সিনিয়র দলে খেলার দারুণ সুযোগ অপেক্ষা করছে ইংলিশ বংশোদ্ভূত বাংলাদেশি এ ফুটবলারের জন্য। এএফসি অনূর্ধ্ব ২৩ এশিয়ান কাপে ভালো খেললে জাতীয় দলের প্রাথমিক স্কোয়াডে সুযোগ পাবেন ইউসুফ।

শ্রীলঙ্কার চার জাতি টুর্নামেন্ট সামনে রেখে জাতীয় দলে সুযোগ পেতে পারেন ইউসুফ জুলকারনাইন হক। সিনিয়র দলে খেলার দারুণ সুযোগ অপেক্ষা করছে ইংলিশ বংশোদ্ভূত বাংলাদেশি এ ফুটবলারের জন্য।

এএফসি অনূর্ধ্ব ২৩ এশিয়ান কাপে ভালো খেললে জাতীয় দলের প্রাথমিক স্কোয়াডে সুযোগ পাবেন ইউসুফ।

লঙ্কান সফরের প্রাথমিক স্কোয়াড ঘোষণা করা হয়েছে সোমবার দুপুরে। জাতীয় দলের ভারপ্রাপ্ত কোচ মারিও লেমসের দলে প্রথমবারের মতো ডাক পেয়েছেন কাতারের শীর্ষ লিগে খেলা বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত প্রবাসী ফুটবলার ওবাইদুর রহমান নবাব।

নবাব ছাড়াও ইংল্যান্ডে খেলা প্রাবসী ফুটবলার ইউসুফের সম্ভাবনা দেখছেন লেমস। ইউসুফসহ অনূর্ধ্ব-২৩ এশিয়ান কাপ খেলতে যাওয়া অন্যান্য ফুটবলারদেরও সম্ভাবনা রয়েছে জাতীয় দলে ডাক পাওয়ার।

টুর্নামেন্টটি নজরে থাকবে পর্তুগিজ কোচের। এ বিষয়ে লেমস নিউজবাংলাকে বলেন, ‘সম্ভাবনাময় অনেকে আছে। উজবেকিস্তানের তিন ম্যাচের দিকেও আমার খেয়াল থাকবে।’

টুর্নামেন্ট শেষ করে জাতীয় দলে যোগ দেবেন উজবেকিস্তানে যাওয়া সিনিয়র দলের ফুটবলাররা।

সোমবার বিকাল পাঁচটায় রাজধানীর এক হোটেলে রিপোর্টিংয়ের সময় রাখা হয়েছে জাতীয় ফুটবলারদের।

আরও পড়ুন:
বিশ্রাম শেষে নেপাল ম্যাচের আগে সতেজ ফুটবলাররা
ফাইনালের আশা হারায়নি বাংলাদেশ
ক্লান্তির কাছে হেরেছি: ব্রুজন
আশা জাগিয়েও মালদ্বীপের কাছে হার বাংলাদেশের
প্রথমার্ধে আশা জাগানো ফুটবল বাংলাদেশের

শেয়ার করুন

লেমসের প্রাথমিক দলে চমক নবাব

লেমসের প্রাথমিক দলে চমক নবাব

ফাইল ছবি

দলে সবচেয়ে বড় চমক ওবাইদুর রহমান নবাবের অন্তর্ভুক্তি। জাতীয় দলে প্রথমবারের মতো ডাক পেয়েছেন কাতার প্রবাসী এই বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত ফুটবলার।

শ্রীলঙ্কায় চার জাতি ফুটবল টুর্নামেন্টের জন্য প্রাথমিক স্কোয়াড ঘোষণা করেছে বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন (বাফুফে)। সদ্য সমাপ্ত সাফের সবাই আছেন দলে। দলের সঙ্গে যুক্ত হচ্ছেন এএফসি অনূর্ধ্ব-২৩ এশিয়ান কাপ খেলতে যাওয়া দলের জাতীয় দলের সিনিয়র সদস্যরা।

দলে সবচেয়ে বড় চমক ওবাইদুর রহমান নবাবের অন্তর্ভুক্তি। জাতীয় দলে প্রথমবারের মতো ডাক পেয়েছেন কাতার প্রবাসী এ বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত ফুটবলার।

সোমবার দুপুরে স্কোয়াড ঘোষণা করে বাফুফে। সাফের স্কোয়াডের বাইরে নতুন করে দলে ডাকা হয়েছে মাসুক মিয়া জনি, সুশান্ত ত্রিপুরা, ইয়াসিন খান, মেহেদী হাসান, রয়েল ও ডিফেন্ডার আতিকুজ্জামানকে।

জাতীয় দলের ভারপ্রাপ্ত কোচ মারিও লেমস রোববার ঢাকায় দক্ষিণ কোরিয়া থেকে ঢাকায় পৌঁছে শ্রীলঙ্কা সফরের জন্য তালিকা দিয়েছেন বাফুফেকে।

লেমসের দলে প্রথমবার ডাক পেয়েছেন কিংসের ফরোয়ার্ড নবাব। দলে থাকলেও ভিসা জটিলতার সমস্যা খেলা অনিশ্চিত তারিক কাজীর। আর এলিটা কিংসলে এখনও ফিফা ক্লিয়ারেন্স না পাওয়ায় তাকে দলভুক্ত করা যায়নি।

জাতীয় দলের প্রাথমিক স্কোয়াড

গোলকিপার: আশরাফুল রানা, আনিসুর রহমান জিকো, শহীদুল আলম সোহেল।

ডিফেন্ডার: বিশ্বনাথ ঘোষ, তারিক কাজী, তপু বর্মন, রহমত মিয়া, রিয়াদুল হাসান, ইয়াসিন আরাফাত, রেজাউল করিম, টুটুল হোসেন বাদশা, সুশান্ত ত্রিপুরা, ইয়াসিন খান, মেহেদী হাসান রয়েল ও আতিকুজ্জামান।

মিডফিল্ডার: জামাল ভূঁইয়া, সোহেল রানা, সাদ উদ্দিন, রাকিব হোসেন, আতিকুর রহমান ফাহাদ ও মাসুক মিয়া জনি।

ফরোয়ার্ড: বিপলু আহমেদ, মাহবুবুর রহমান সুফিল, মোহাম্মদ ইব্রাহিম, সুমন রেজা, মতিন মিয়া, জুয়েল রানা ও ওবাইদুর রহমান নবাব।

আরও পড়ুন:
বিশ্রাম শেষে নেপাল ম্যাচের আগে সতেজ ফুটবলাররা
ফাইনালের আশা হারায়নি বাংলাদেশ
ক্লান্তির কাছে হেরেছি: ব্রুজন
আশা জাগিয়েও মালদ্বীপের কাছে হার বাংলাদেশের
প্রথমার্ধে আশা জাগানো ফুটবল বাংলাদেশের

শেয়ার করুন

গোলশূন্য ড্রয়ে শেষ মেসির প্রথম ‘ল্য ক্লাসিক’

গোলশূন্য ড্রয়ে শেষ মেসির প্রথম ‘ল্য ক্লাসিক’

মার্শেইয়ের জেঙ্গিজ উন্দারের সঙ্গে বল দখলের লড়াইয়ে লিওনেল মেসি। ছবি: টুইটার

গোলশূন্য ড্রয়ে শেষ হলেও ঘটন-অঘটনের কমতি ছিল না মার্শেই-পিএসজি ম্যাচে। গোল বাতিল, লাল কার্ড থেকে শুরু করে মাঠে দর্শকের গণ্ডগোল সবই দেখেছে ৯০ মিনিটের এ লড়াই।

নিজের ঝলমলে ক্যারিয়ারে অসংখ্য স্মরণীয় ম্যাচের অংশ হয়েছেন লিওনেল মেসি। বিশ্বকাপ, কোপা, চ্যাম্পিয়নস লিগ ফাইনাল, এল ক্লাসিকো বিশ্বের সব বড় ম্যাচে নাম লিখিয়েছেন এই আর্জেন্টাইন ফুটবল জাদুকর।

রোববার রাতে তার অভিষেক হলো আরেকটি বিখ্যাত ম্যাচে। নতুন ক্লাব প্যারিস সেইন্ট জার্মেইর (পিএসজি) হয়ে মার্শেইর বিপক্ষে মেসি খেললেন ফরাসি ফুটবলের খ্যাতনামা ‘ল্য ক্লাসিক’।

গোলশূন্য ড্রয়ে শেষ হলেও ঘটন-অঘটনের কমতি ছিল না হাই ভোল্টেজ ম্যাচে। গোল বাতিল, লাল কার্ড থেকে শুরু করে মাঠে দর্শকের গণ্ডগোল সবই দেখেছে ৯০ মিনিটের এ লড়াই।

মার্শেইর মাঠ দ্য ভেলোড্রোমে শুরু হয় গোল বাতিল দিয়ে। ১৪ মিনিটে মার্শেইর বক্সে নেইমার বল বাড়ান কিলিয়ান এমবাপের উদ্দেশে।

এমবাপে বল ধরার আগেই মার্শেই ডিফেন্ডার লুয়ান পেরেস তা ক্লিয়ার করতে গিয়ে নিজেদের জালে জড়িয়ে দেন। স্বাগতিকদের আত্মঘাতী গোলের আনন্দে মাতে পিএসজি।

তবে নেইমারের অফসাইডের কারণে যখন গোল বাতিল করে দেন রেফারি তখন স্বস্তির নিঃশ্বাস ছাড়ে মার্শেই।

মিনিট পাঁচেক পর একই রকম নাটক হয় অন্যপ্রান্তে। মার্শেই মিডফিল্ডার বুবাকার কামারা খুঁজে নেন পল লিরোলাকে। লিরোলা বক্সে থাকা আরকাদিউস মিলিককে পাস দিলে, বল নিয়ন্ত্রণে নিয়ে চমৎকার শটে জালে জড়ান তিনি।

এবারও লিরোলার অফসাইডের কারণে মিলিকের গোল বাতিল করে দেন রেফারি।

লিওনেল মেসি সুযোগ পান এরপর। বাম প্রান্ত দিয়ে করা আনহেল দি মারিয়ার চিপ মার্শেই ডিফেন্ডারের গায়ে লেগে ফিরে আসে।

ফিরতি বলে দারুণ হেড করেন মেসি। কাছ থেকে অসাধারণ দক্ষতায় তা ফিরিয়ে দিয়ে স্বাগতিকদের নিরাপদে রাখেন গোলকিপার পাউ লোপেস।

এর মিনিটখানেক পর নিরাপত্তা বেষ্টনী ভেদ করে মাঠের সীমানার কাছাকাছি চলে আসেন মার্শেইর একদল সমর্থক। নিরাপত্তাকর্মীরা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনার সময় কয়েক মিনিট বন্ধ থাকে ম্যাচ।

বিরতির আগে দুঃসংবাদ পায় পিএসজি। মার্কো ভেরাত্তি চোটের কারণে মাঠ ছেড়ে চলে যান। তার বদলি হিসেবে নামেন ইদ্রিসা গেয়ে।

ভেরাত্তি মাঠ ছেড়ে যাওয়ায় দ্বিতীয়ার্ধে ম্যাচ নিয়ন্ত্রণ ও প্লে-মেকিংয়ের পুরো দায়িত্ব চাপে লিওনেল মেসির কাঁধে। সতীর্থদের গোলের সুযোগ তৈরি করে দেয়ার পাশাপাশি নিজেও গোলে আক্রমণ চালান ছয়বারের ব্যালন ডরজয়ী এ তারকা।

তবে পিএসজির জন্য ছিল দুর্ভাগ্য। জেঙ্গিজ উন্দারকে ফাউল করায় ৫৭ মিনিটে সরাসরি লাল কার্ড দেখেন তাদের রাইট ব্যাক আচরাফ হাকিমি।

বাকি প্রায় ৩৫ মিনিট পিএসজিকে খেলতে হয় ১০ জন নিয়ে। ফলে তাদের আক্রমণের ধার যায় কমে। পিএসজি কোচ মরিসিও পচেত্তিনো এক পয়েন্ট নিয়ে প্যারিসে ফেরার পরিকল্পনা করেন।

মার্শেই পিএসজির রক্ষণাত্মক খেলার ধাঁচের সঙ্গে পেরে ওঠেনি। মার্শেইর হয়ে কনরাড ডে লা ফুয়েন্টে ও ভালেঁতি রজে কাছাকাছি গিয়েছিলেন গোলের। কিন্তু সুযোগ কাজে লাগাতে পারেননি।

শেষদিকে নেইমারকে তুলে নিলেও গোলের আশায় মেসিকে মাঠে রাখেন পচেত্তিনো। কিন্তু ফ্রেঞ্চ লিগে পিএসজির হয়ে অ্যাকাউন্ট খুলতে ব্যর্থ হন বিশ্বসেরা এ তারকা।

ফলে গোলশূন্য অবস্থাতে শেষ হয় ম্যাচ। ড্রয়ের পর নিরাপদ দূরত্বে শীর্ষে থাকল পিএসজি। ১১ ম্যাচে তাদের ঝুলিতে আছে ২৮ পয়েন্ট।

দুইয়ে থাকা লঁসের সংগ্রহ সমান ম্যাচে ২১। ১০ ম্যাচে ১৯ পয়েন্ট নিয়ে তিনে আছে নিস। আর ১১ ম্যাচে ১৮ পয়েন্ট নিয়ে চারে অবস্থান মার্শেইর।

আরও পড়ুন:
বিশ্রাম শেষে নেপাল ম্যাচের আগে সতেজ ফুটবলাররা
ফাইনালের আশা হারায়নি বাংলাদেশ
ক্লান্তির কাছে হেরেছি: ব্রুজন
আশা জাগিয়েও মালদ্বীপের কাছে হার বাংলাদেশের
প্রথমার্ধে আশা জাগানো ফুটবল বাংলাদেশের

শেয়ার করুন

সালাহর হ্যাটট্রিকে ইউনাইটেডকে ৫-০ গোলে হারাল লিভারপুল

সালাহর হ্যাটট্রিকে ইউনাইটেডকে ৫-০ গোলে হারাল লিভারপুল

হ্যাটট্রিকের পর মোহামেদ সালাহর উদযাপন। ছবি: টুইটার

সালাহর জাদুতে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডকে ৫-০ গোলে উড়িয়ে দিয়েছে লিভারপুল। ইউনাইটেডের মাঠ ওল্ড ট্র্যাফোর্ডে সালাহর তিন গোলের সঙ্গে স্কোর করেছেন নাবি কিটা ও দিয়োগো জোতা।

ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগের (ইপিএল) বিগ ম্যাচের আগে মোহামেদ সালাহ জানান, ব্যলন ডর জয়ের স্বপ্ন তার। মেসি, রোনালডোর পর নিজেকে বিশ্বসেরা ফুটবলার হিসেবে দেখতে চান তিনি।

তেমনটা ভাবার কারণও আছে। এবারের মৌসুমে দারুণ ছন্দে আছেন এই মিশরীয়। টানা নয় ম্যাচে গোল পেয়েছেন তিনি। আর ইউনাইটেডের বিপক্ষে হ্যাটট্রিক করে দলের বড় জয়ের নায়ক বনে গেলেন সালাহ।

সালাহর জাদুতে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডকে ৫-০ গোলে উড়িয়ে দিয়েছে লিভারপুল। ইউনাইটেডের মাঠ ওল্ড ট্র্যাফোর্ডে সালাহর তিন গোলের সঙ্গে স্কোর করেছেন নাবি কিটা ও দিয়োগো জোতা।

ম্যাচের শুরু থেকেই ইউনাইটেডকে নাস্তানাবুদকে করতে থাকে লিভারপুল। ১৫ মিনিটে দুই গোলের লিড নিয়ে নেয় সফরকারী দল।

পাঁচ মিনিটের সময় কাউন্টার অ্যাটাক থেকে দলকে লিড এনে দেন কিটা। অ্যাসিস্ট ছিল সালাহর। দশ মিনিটের মধ্যে লিড দ্বিগুন করে লিভারপুল।

ইউনাইটেডের রক্ষণভাগে লুক শ ও হ্যারি ম্যাগুয়ারের ভুলে বল পেয়ে যান কিটা। তিনি বল বাড়ান ট্রেন্ট আলেক্সান্ডার-আরনল্ডকে।

আরনল্ড সিক্স ইয়ার্ড বক্সে খুঁজে নেন জোতাকে। কাছ থেকে গোল করতে ভুল করেননি এই পর্তুগিজ।

দ্রুত দুই গোল হজম করে হতচকিত হয়ে পড়ে ইউনাইটেড। লিভারপুল সে সুযোগে চেপে ধরে সাবেক চ্যাম্পিয়নদের।

বিরতির আগে তিন নম্বর গোলের দেখা পেয়ে যায় সফরকারীরা। জোতার শট ইউনাইটেড গোলকিপার ঠেকিয়ে দিলে ফিরতি বল পেয়ে যান কিটা।

তার বাড়ানো বলে বক্সে থাকা সালাহ নিজের প্রথম গোল পান ম্যাচের। মিনিট সাতেক পর আবারও জোতা-সালাহ কম্বিনেশনে চতুর্থ গোল পেয়ে যায় লিভারপুল।

এবারে অ্যাসিস্ট ছিল জোতার আর গোলদাতা ছিলেন সালাহ। ৪-০ গোলের লিড নিয়ে বিরতিতে যায় লিভারপুল।

দ্বিতীয়ার্ধে বিপদ আরও বাড়ে স্বাগতিক দলের। জর্ডান হেন্ডারসনের বাড়ানো বল থেকে নিজের হ্যাটট্রিক পূর্ণ করেন সালাহ।

ম্যাচের ৫০ মিনিটে স্কোরলাইন দাঁড়ায় লিভারপুলের পক্ষে ৫-০। খারাপ হতে থাকা ম্যাচ আরও খারাপ হয়ে যায় ইউনাইটেডের।

৬০ মিনিটে সরাসরি লাল কার্ড দেখেন পল পগবা। ১০ জনের দলে পরিণত হয় ইউনাইটেড।

বাকি সময়ে ঘরের দল আতঙ্ক নিয়ে কাটালেও লিভারপুল খুব একটা গোল করায় আগ্রহ দেখায়নি। ম্যাচভাগ্য নিশ্চিত হয়ে যাওয়ায় নিজেদের স্ট্যামিনা বাঁচানোতে জোর দেন খেলোয়াড়রা।

ক্রিস্টিয়ানো রোনালডোসহ স্বাগতিক তারকাদের বাজে পারফরম্যান্সে ম্যাচে আর তেমন সুযোগ তৈরি করতে পারেনি ইউনাইটেড। শেষ আধঘণ্টায় আর গোলও করেনি লিভারপুল।

৫-০ গোলে হেরে মাঠ ছাড়ে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড। এ জয়ে টেবিলের দুই নম্বরে উঠে এলো লিভারপুল। ইউনাইটেড আছে সাত নম্বরে।

আরও পড়ুন:
বিশ্রাম শেষে নেপাল ম্যাচের আগে সতেজ ফুটবলাররা
ফাইনালের আশা হারায়নি বাংলাদেশ
ক্লান্তির কাছে হেরেছি: ব্রুজন
আশা জাগিয়েও মালদ্বীপের কাছে হার বাংলাদেশের
প্রথমার্ধে আশা জাগানো ফুটবল বাংলাদেশের

শেয়ার করুন