‘ভারতের বিপক্ষে চাপ নিয়ে আগেও হেরেছে দল’

‘ভারতের বিপক্ষে চাপ নিয়ে আগেও হেরেছে দল’

মোহাম্মদ রিজওয়ান। ফাইল ছবি

ভারতের বিপক্ষে ম্যাচ নিয়ে চাপ নেয়াতে অতীতে হারতে হয়েছে বলেও জানান রিজওয়ান, ‘ভারতের বিপক্ষে খেলতে হবে ভেবে নিজেদের চাপে ফেলতে চায় না ক্রিকেটাররা। সেটা করতে গিয়ে অতীতে আমাদের ক্ষতি হয়েছে। আমরা আইসিসি ইভেন্টে অনেক ম্যাচ হেরেছি।’

২৪ অক্টোবর ভারতের বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ মিশন শুরু করবে পাকিস্তান। দুই দেশের সমর্থকদের কাছে এটি হাইভোল্টেজ ম্যাচ। তবে পাকিস্তান দলের উইকেটকিপার ব্যাটার মোহাম্মদ রিজওয়ান ভারত-পাকিস্তান ম্যাচকে আলাদা চোখে দেখছেন না।

রাজনৈতিক কারনে ২০১৩ সাল থেকে ভারত-পাকিস্তান সিরিজ হচ্ছে না। আইসিসি ইভেন্ট ছাড়া ভারত-পাকিস্তান লড়াইও দেখা যায় না। টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের সপ্তম আসরে আবারও দেখা যাবে এ ম্যাচ। তবে ম্যাচকে অন্য ১০টা ম্যাচের মতই নিতে চান রিজওয়ান।

ইউটিউবে এক লাইভ সেশনে রিজওয়ান বলেন, ‘ভারত-পাকিস্তান ম্যাচকে আলাদা চোখে দেখছি না। এই ম্যাচটা নিয়ে উত্তেজনা সৃষ্টি করছে সংবাদমাধ্যম আর দুদেশের সমর্থক।’

ভারতের বিপক্ষে ম্যাচ নিয়ে চাপ নেয়াতে অতীতে হারতে হয়েছে বলেও জানান রিজওয়ান, ‘ভারতের বিপক্ষে খেলতে হবে ভেবে নিজেদের চাপে ফেলতে চায় না ক্রিকেটাররা। সেটা করতে গিয়ে অতীতে আমাদের ক্ষতি হয়েছে। আমরা আইসিসি ইভেন্টে অনেক ম্যাচ হেরেছি।’

সংযুক্ত আরব আমিরাতে নিজেদের ঘরের মাঠ বানিয়ে বহু আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলেছে পাকিস্তান। তাই ক্রিকেট বিশেষজ্ঞদের মতে মরুর দেশের সুবিধা বিশ্বকাপে কাজে লাগবে পাকিস্তানের। কিন্তু সেটি মানছেন না রিজওয়ান।

তিনি বলেন, ‘আমি বিশ্বাস করি না, আরব আমিরাতে পাকিস্তান বা অন্য কোনও দল বিশেষ সুবিধা পাবে। এটা ঠিক, আরব আমিরাতে আমরা নিয়মিত খেলছি, আমাদের অভিজ্ঞতাও অনেক। অনেকেই বলে, আমির শাহিতে ম্যাচ মানে নিজেদের মাঠে খেলা। ব্যক্তিগত ভাবে এই ধরনের মন্তব্যকে সমর্থন করি না। তার কারণ সেখানকার উইকেট অস্ট্রেলিয়া বা অন্য কোনও দেশ থেকে মাটি এনে তৈরি হয়েছে।’

২০১৫ সালে পাকিস্তানের জার্সিতে আন্তর্জাতিক ম্যাচ শুরু করেছিলেন রিজওয়ান। এরপর ফর্মহীনতায় দল থেকে বাদ পড়েন তিনি। গত দুই বছরে পাকিস্তানের ব্যাটিং লাইনআপের অন্যতম শক্তি রিজওয়ান।

গত বছর ১০ টি-টোয়েন্টিতে ৪৪.৩৩ গড়ে ১৩৩ রান করে ফর্মের তুঙ্গে ওঠেন রিজওয়ান। এ বছর ১৪ ইনিংসে ১টি সেঞ্চুরি ও ৭টি হাফসেঞ্চুরিসহ ৯৪ গড়ে ৭৫২ রান করেছেন ২৯ বছর বয়সী এই হার্ড হিটার।

আরও পড়ুন:
ভারতের টাকায় টিকে আছে পাকিস্তানের ক্রিকেট: রাজা
‘ভারতের চেয়ে পাকিস্তানে ক্রিকেট প্রতিভা বেশি’
‘ভারতকে বিশ্বকাপে হারাতে পারে পাকিস্তান’

শেয়ার করুন

মন্তব্য

আয়ারল্যান্ডকে দাঁড়াতেই দিল না শ্রীলঙ্কা

আয়ারল্যান্ডকে দাঁড়াতেই দিল না শ্রীলঙ্কা

লঙ্কান ক্রিকেটারদের উইকেট উদযাপন। ছবি: আইসিসি

আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে ৭০ রানের বড় জয় নিয়ে সুপার টুয়েলভের দিকে এক পা দিয়ে রাখল দাশুন শানাকার দল। লঙ্কার করা ১৭১ রানের জবাবে ব্যাট করতে নেমে ১০১ রানে থামে আইরিশদের ইনিংস।

টি-টয়েন্টি বিশ্বকাপের বাছাইপর্বে নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচেও জয় বাগিয়ে নিয়েছে শ্রীলঙ্কা। আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে ৭০ রানের বড় জয় নিয়ে সুপার টুয়েলভের দিকে এক পা দিয়ে রাখল দাশুন শানাকার দল।

আবুধাবির শেখ জায়েদ ক্রিকেট স্টেডিয়ামে টসে জিতে শ্রীলঙ্কাকে ব্যাট করেতে পাঠান আইরিশ দলপতি অ্যান্ডি বলবার্নি।

ব্যাট করতে নেমে শুরুতে বড় রকমের ধাক্কা খায় লঙ্কানরা। দলীয় ৩ রানেই পল স্টার্লিং ও জশ লিটলের বোলিং তোপে সাজঘরে ফিরতে হয় কুশাল পেরেরা, দিনেশ চান্দিমাল ও আভিস্কা ফার্নান্দোকে।

এরপর ওপেনার পাথুম নিশাঙ্কা ও হাসারাঙ্গা ডি সিলভার অবিচ্ছেদ্য ১২৩ রানের জুটিতে ঘুরে দাঁড়ায় শ্রীলঙ্কা।

দলীয় ১৩১ রানে হাসারাঙ্গা ৪৭ বলে ৭১ রানের ঝড়ো ইনিংস খেলে বিদায় নিলেও উইকেটে থেকে লড়াই চালিয়ে যান নিশাঙ্কা।

৪৭ বলে ৬১ রানের ইনিংস খেলে যখন নিশাঙ্কা মাঠ ছাড়েন ততক্ষণে চ্যালেঞ্জিং স্কোর দাঁড়িয়ে গেছে আয়ারল্যান্ডের সামনে। শেষ পর্যন্ত ৭ উইকেটের খরচায় ১৭১ রানে থামে শ্রীলঙ্কার ইনিংস।

জবাবে ব্যাট করতে নেমে বলবার্নির ৪১ ও কার্টিস ক্যামফারের ২৪ ছাড়া লঙ্কান বোলারদের সামনে দাঁড়াতেই পারেননি কোনো আইরিশ ব্যাটার। ফলে ১০১ রানে থেমে যায় আয়ারল্যান্ডের রানের চাকা। আর শ্রীলঙ্কা মাঠ ছাড়ে ৭০ রানের বড় জয় নিয়ে।

শ্রীলঙ্কার হয়ে তিনটি উইকেট নেন মাহেশ থিকসানা। দুটি করে উইকেট নেন লাহিরু কুমারা ও চামিক্যা করুনারাত্নে। একটি করে উইকেট নেন দুশমান্থা চামিরা ও হাসারাঙ্গা ডি সিলভা।

আরও পড়ুন:
ভারতের টাকায় টিকে আছে পাকিস্তানের ক্রিকেট: রাজা
‘ভারতের চেয়ে পাকিস্তানে ক্রিকেট প্রতিভা বেশি’
‘ভারতকে বিশ্বকাপে হারাতে পারে পাকিস্তান’

শেয়ার করুন

পারিবারিক সহিংস আচরণের জন্য গ্রেপ্তার স্ল্যাটার

পারিবারিক সহিংস আচরণের জন্য গ্রেপ্তার স্ল্যাটার

মাইকেল স্ল্যাটার। ছবি: সংগৃহীত

অস্ট্রেলিয়ান স্থানীয় সংবাদমাধ্যম জানিয়েছে পারিবারিক সহিংসতার জের ধরে গ্রেফতার করা হয়েছে তাকে। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত এখনও পুলিশের হেফাজতেই রয়েছেন স্ল্যাটার।

বিতর্কিত ঘটনার জন্ম দেয়ার জন্য জুড়ি মেলা ভার সাবেক অস্ট্রেলিয়ান ক্রিকেটার মাইকেল স্ল্যাটারের। অতীতে বেশ কয়েকবার বিতর্কিত ঘটনার সৃষ্টি করে হয়েছেন সংবাদমাধ্যমের শিরোনাম।

তবে এবার শুধু শিরোনামেই আটকে থাকলেন না অজি এই ধারাভাষ্যকার। পারিবারিক সহিংসতার জের ধরে গ্রেফতার হয়েছেন সাবেক এ ওপেনার।

বুধবার সিডনির ম্যানলির একটি বাড়ি থেকে স্ল্যাটারকে আটক করে স্থানীয় পুলিশ। আটকের পর তাকে ম্যানলি পুলিশ স্টেশনে নিয়ে যাওয়া হয়।

ম্যানলি পুলিশের তরফ থেকে জানানো হয়েছে, গত ১২ অক্টোবরের এক ঘটনার প্রেক্ষিতে জিজ্ঞাসাবাদের পরে স্ল্যাটারকে আটক করা হয়। যদিও ঘটনাটি সম্পর্কে বিস্তারিত জানানো হয়নি পুলিশের পক্ষ থেকে।

অস্ট্রেলিয়ান স্থানীয় সংবাদমাধ্যম জানিয়েছে পারিবারিক সহিংসতার জের ধরে গ্রেফতার করা হয়েছে তাকে। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত এখনও পুলিশের হেফাজতেই রয়েছেন তিনি।

চলতি বছরের মে মাসে অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রী সম্পর্কে বিরূপ মন্তব্য করায় চ্যানেল সেভেনের ধারাভাষ্যকারের পদ থেকে ছাটাই করা হয়েছিল তাকে।

এর আগে অজি জাতীয় দলের ওপেনার ডেভিড ওয়ার্নারের সঙ্গে হাতাহাতিতে জড়িয়েছিলেন স্ল্যাটার। মালদ্বীপের একটি রিসোর্টে তাদের বাকযুদ্ধ এক পর্যায়ে হাতাহাতিতে রূপ নিয়েছিল।

আরও পড়ুন:
ভারতের টাকায় টিকে আছে পাকিস্তানের ক্রিকেট: রাজা
‘ভারতের চেয়ে পাকিস্তানে ক্রিকেট প্রতিভা বেশি’
‘ভারতকে বিশ্বকাপে হারাতে পারে পাকিস্তান’

শেয়ার করুন

বিশ্বকাপে অ্যালেনের বদলি আকিল

বিশ্বকাপে অ্যালেনের বদলি আকিল

গত জুলাইয়ে সাউথ আফ্রিকার বিপক্ষে ম্যাচ চলাকালীন কাঁধের ইনজুরিতেও পড়েছিলেন অ্যালেন। ছবি: আইসিসি

ক্যারিবিয়ান প্রিমিয়ার লিগের চলতি বছরের আসরে খেলার সময় হাঁটুর ইনজুরিতে পড়েছিলেন অলরাউন্ডার ফ্যাবিয়ান অ্যালেন। বিশ্বকাপের ঠিক আগ মুহূর্তে সেই চোট মাথাচাড়া দিয়ে ওঠায় ওয়েস্ট ইন্ডিজ স্কোয়াড থেকে ছিটকে গেলেন ২৬ বছর বয়সী এই ক্রিকেটার। তার জায়গায় মূল দলে ডাক পেয়েছেন রিজার্ভ বেঞ্চে থাকা আকিল হোসেইন।

আগামী ২৩ অক্টোবর শুরু হচ্ছে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের সুপার টুয়েলভের লড়াই। বিশ্বকাপের এই পর্বে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে বিশ্বকাপে যাত্রা শুরু করবে ওয়েস্ট ইন্ডিজ।

মূল পর্বের তিন দিন আগে বড় রকমের ধাক্কা খেল ক্যারিবীয়রা। ক্যারিবিয়ান প্রিমিয়ার লিগের চলতি বছরের আসরে খেলার সময় হাঁটুর ইনজুরিতে পড়েছিলেন অলরাউন্ডার ফ্যাবিয়ান অ্যালেন।

বিশ্বকাপের ঠিক আগ মুহূর্তে সেই চোট মাথাচাড়া দিয়ে ওঠায় ওয়েস্ট ইন্ডিজ স্কোয়াড থেকে ছিটকে গেলেন ২৬ বছর বয়সী এই ক্রিকেটার।

তার জায়গায় মূল দলে ডাক পেয়েছেন রিজার্ভ বেঞ্চে থাকা আকিল হোসেইন। আর আকিলের পরিবর্তে রিজার্ভ বেঞ্চে ঢুকেছেন গুডকেশ মতি।

ওয়েস্ট ইন্ডিজের জার্সি গায়ে ছয়টি টি-টোয়েন্টি ও নয়টি ওয়ানডে খেলেছেন আকিল। জাতীয় দলের হয়ে আলো ছড়াতে না পাড়লেও উজ্জ্বল ছিলেন সিপিএলে।

ত্রিনবাগো নাইট রাইডার্সের হয়ে বল হাতে ছিলেন বেশ মিতব্যয়ী। পাশাপাশি মোট ১৩টি উইকেট শিকার করেছিলেন বাঁহাতি এই স্পিনার।

গত আসরে ১৫.৯২ গড়ে বোলিং করায় রিভার্জ তালিকা থেকে ব্র্যাভো ও হোল্ডারকে ছাপিয়ে মূল দলে সুযোগ করে নিয়েছেন ২৮ বছর বয়সী এই ক্রিকেটার।

আরও পড়ুন:
ভারতের টাকায় টিকে আছে পাকিস্তানের ক্রিকেট: রাজা
‘ভারতের চেয়ে পাকিস্তানে ক্রিকেট প্রতিভা বেশি’
‘ভারতকে বিশ্বকাপে হারাতে পারে পাকিস্তান’

শেয়ার করুন

ভিসের হাত ধরে বিশ্বকাপে নামিবিয়ার ইতিহাস

ভিসের হাত ধরে বিশ্বকাপে নামিবিয়ার ইতিহাস

নেদারল্যান্ডসের বিপক্ষে ব্যাট করছেন ভিসে। ছবি: আইসিসি

চ্যালেঞ্জিং স্কোরের জবাবে ব্যাট করতে নেমে ৫২ রানেই তিন উইকেট হারিয়ে বসে নামিবিয়া। এরপর অধিনায়ক এরাসমুসকে সঙ্গে নিয়ে ৯৩ রানের জুটি গড়ে ডেভিড ভিসে দলকে নিয়ে যান জয়ের দোরগোড়ায়।

বাবা নামিবিয়ার নাগরিক হলেও জন্মসূত্রে ডেভিড ভিসে সাউথ আফ্রিকান। খেলেছেন প্রোটিয়া জাতীয় দলেও। কোলপ্যাক চুক্তির কারণে সাউথ আফ্রিকার জাতীয় দলের হয়ে ক্যারিয়ার শেষ হয়ে যার এ অলরাউন্ডারের।

সাউথ আফ্রিকার হয়ে খেলতে না পারলেও ক্রিকেটের সত্ত্বাটা বেঁচে ছিল ভিসের। সেকারণে নাম লেখান নামিবিয়ার জাতীয় দলে। তার হাত ধরেই বিশ্বকাপে ইতিহাস গড়ল দলটি।

ভিসের দুর্দান্ত ব্যাটিংয়ে বাছাইপর্বে শক্তিশালী নেদারল্যান্ডসের বিপক্ষে ৬ উইকেটের জয় নিয়ে মাঠ ছেড়েছে নামিবিয়া। বিশ্বকাপে প্রথম জয়ের পাশাপাশি নবাগত দলটি বাঁচিয়ে রাখল বিশ্বকাপের সুপার টুয়েলভে খেলার আশা।

আবুধাবির শেখ জায়েদ ক্রিকেট স্টেডিয়ামে টসে জিতে নেদারল্যান্ডসকে ব্যাটিংয়ে পাঠায় নবাগত নামিবিয়া। ব্যাট করতে নেমে ওপেনার ম্যাক্স ও’ডয়েডের ৫৬ বলে ৭০ ও কলিন অ্যাকারম্যানের ৩২ বলে ৩৫ রানের ইনিংসে ভর করে ৪ উইকেটের খরচায় ১৬৪ রানের পুঁজি পায় ডাচরা।

চ্যালেঞ্জিং স্কোরের জবাবে ব্যাট করতে নেমে ৫২ রানেই তিন উইকেট হারিয়ে বসে নামিবিয়া। এরপর অধিনায়ক গেরহার্ড এরাসমুসকে সঙ্গে নিয়ে ৯৩ রানের জুটি গড়ে ডেভিড ভিসে দলকে নিয়ে যান জয়ের দোরগোড়ায়।

এরাসমুস বিদায় নিলেও লড়াই চালিয়ে যান ভিসে শেষতক দলকে ৬ উইকেটের দুর্দান্ত জয় এনে দিয়ে থামেন তিনি। অপরাজিত থাকেন ৪০ বলে ৬৬ করে।

আরও পড়ুন:
ভারতের টাকায় টিকে আছে পাকিস্তানের ক্রিকেট: রাজা
‘ভারতের চেয়ে পাকিস্তানে ক্রিকেট প্রতিভা বেশি’
‘ভারতকে বিশ্বকাপে হারাতে পারে পাকিস্তান’

শেয়ার করুন

অ্যাশেজে সুযোগ নেই দেখে বিদায় বললেন প্যাটিনসন

অ্যাশেজে সুযোগ নেই দেখে বিদায় বললেন প্যাটিনসন

অ্যাশেজে বল করার পর জেমস প্যাটিনসন। ছবি: টুইটার

অ্যাশেজে খেলতে পারবেন না দেখে হুট করেই আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে অবসরের ঘোষণা দিয়েছেন ৩১ বছর বয়সী এই অজি ক্রিকেটার।

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের পরপরই ঘরের মাঠে অ্যাশেজের আয়োজন করতে যাচ্ছে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া (সিএ)। ইনজুরি কাটিয়ে সেই সিরিজ দিয়ে ক্রিকেটে ফেরার কথা ছিল অস্ট্রেলিয়ান পেইসার জেমস প্যাটিনসনের।

কিন্তু ইনজুরি থেকে ফিরে প্রস্তুতির পর্যাপ্ত সময় না পাওয়ায় অ্যাশেজে অনিশ্চিত তার ভাগ্য। অ্যাশেজে খেলতে পারবেন না দেখে হুট করেই আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে অবসরের ঘোষণা দিয়েছেন ৩১ বছর বয়সী এই অজি ক্রিকেটার।

অ্যাশেজের প্রস্তুতি হিসেবে অস্ট্রেলিয়ার ঘরোয়া ক্রিকেটে সময় দিচ্ছিলেন প্যাটিনসন। সেখানে চোট পান। চোট কাটিয়ে ফিরে এলেও নিজের প্রস্তুতি অ্যাশেজে অংশ নেয়ার মতো না উপযুক্ত না হওয়ায় আন্তর্জাতিক ক্রিকেটকে বিদায় জানান তিনি।

বুধবার এক বিবৃতিতে বিষয়টি নিশ্চিত করেন প্যাটিনসন।

তিনি বলেন, ‘প্রাক-মৌসুমকে সামনে রেখে অ্যাশেজের দলে জায়গা পাওয়ার একটা চেষ্টা করতে চেয়েছিলাম। কিন্তু যে প্রস্তুতি নিয়ে নামতে চেয়েছি, তেমনটা হলো না। যদি অ্যাশেজের অংশ হতে চাই তবে আমার নিজের ও সতীর্থদের প্রতি ন্যায়বিচার করতে হবে।

‘শতভাগ ফিট হতে হবে। যে কোনো সময় খেলার জন্য প্রস্তুত থাকতে হব। চাওয়াটা যখন এমন তখন শরীরের সঙ্গে প্রতিনিয়ত লড়াই করার অবস্থানে থাকতে চাইনি। আমার বা দলের জন্য সেটা ঠিক হতো না।’

২০১১ সালে বাংলাদেশের বিপক্ষে ওয়ানডে দিয়ে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে পা রাখেন প্যাটিনসন। একই বছরে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে টেস্টে ও সাউথ আফ্রিকার বিপক্ষে টি-টোয়েন্টিতে অভিষেক হয় বাঁহাতি এই পেইসারের।

অভিষেকের ৪ ম্যাচে পরই তারকা এই অজি পেইসার হারিয়ে যান টি-টোয়েন্টি ক্রিকেট থেকে।

বেশিদূর গড়াতে পারেননি ওয়ানডে ক্যারিয়ারও। তবে লাল বলের ক্রিকেটে খেলা চালিয়ে গেলেও চোটের হানায় বেশিরভাগ সময়ই থাকতে হয়েছে দলের বাইরে।

টেস্টে মিচেল স্টার্ক, জশ হেইজলউড ও প্যাট কামিন্সের বদলি হিসেবে মাঝে মধ্যে সুযোগ পেতেন মূল দলে।

আরও পড়ুন:
ভারতের টাকায় টিকে আছে পাকিস্তানের ক্রিকেট: রাজা
‘ভারতের চেয়ে পাকিস্তানে ক্রিকেট প্রতিভা বেশি’
‘ভারতকে বিশ্বকাপে হারাতে পারে পাকিস্তান’

শেয়ার করুন

শ্রীলঙ্কায় হারের হ্যাটট্রিক জুনিয়র টাইগারদের

শ্রীলঙ্কায় হারের হ্যাটট্রিক জুনিয়র টাইগারদের

বাংলাদেশ দলের উইকেট নেয়ার পর উচ্ছ্বসিত শ্রীলঙ্কা দল। ছবি: টুইটার

সিরিজের তৃতীয় ম্যাচে লঙ্কান যুবাদের বিপক্ষে ৩ উইকেটে হেরেছে লাল সুবজের প্রতিনিধিরা। যার ফলে দুই ম্যাচ হাতে রেখে ৩-০ ব্যবধানে সিরিজ জিতে নিয়েছে স্বাগতিক দল।

ঘরের মাঠে আফগানিস্তানের বিপক্ষে সিরিজ জয়ের স্বাদ নিয়ে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে খেলতে গিয়েছিল বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব ১৯ দল। লক্ষ্য ছিল জয়ের ধারা অব্যাহত রাখা। কিন্তু পাঁচ ম্যাচ সিরিজের প্রথম তিন ওয়ানডেতে হারকে সঙ্গী করে মাঠ ছাড়তে হয়েছে যুব দলকে।

সিরিজের তৃতীয় ম্যাচে লঙ্কান যুবাদের বিপক্ষে ৩ উইকেটে হেরেছে লাল সুবজের প্রতিনিধিরা। যার ফলে দুই ম্যাচ হাতে রেখে ৩-০ ব্যবধানে সিরিজ জিতে নিয়েছে স্বাগতিক দল।

ডাম্বুলায় সিরিজের তৃতীয় ম্যাচে টসে জিতে ব্যাট করতে নেমে শুরুতেই ব্যাটিং বিপর্যয়ে পড়ে জুনিয়র টাইগাররা।

শ্রীলঙ্কান বোলারদের বোলিং তোপের সামনে বেসামাল হয়ে পড়ে সফরকারীদের ব্যাটিং লাইন আপ। সর্বোচ্চ ৫৪* রান করেন আশিকুর জামান। আহসান হাবিবের ব্যাট থেকে আসে ৩৩।

নাইমুর রহমান করেন ২৭ ও আইচ মোল্লা করেন ২৩ রান। আর কোনো ব্যাটসম্যান দুই অঙ্কের রান করেননি। নিয়মিত উইকেটপতনের পর ১৮৪ রানে থেমে যায় বাংলাদেশের ইনিংস।

সহজ লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে শুরুটা খুব একটা ভালো হয়নি শ্রীলঙ্কারও। দলীয় ১৪ রানেই হারিয়ে বসে তাদের দুই ওপেনারকে।

শেষতক শিভন ড্যানিয়েলের অপরাজিত ৮৫ এবং ওয়ানজুয়া সাহানের ৩৮ রানের ইনিংসে রক্ষা পায় লঙ্কানরা। ৩ উইকেটের জয়ের পাশাপাশি সিরিজ নিশ্চিত করে মাঠ ছাড়ে তারা।

আরও পড়ুন:
ভারতের টাকায় টিকে আছে পাকিস্তানের ক্রিকেট: রাজা
‘ভারতের চেয়ে পাকিস্তানে ক্রিকেট প্রতিভা বেশি’
‘ভারতকে বিশ্বকাপে হারাতে পারে পাকিস্তান’

শেয়ার করুন

এখনও গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হতে পারে বাংলাদেশ

এখনও গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হতে পারে বাংলাদেশ

ওমানের বিপক্ষে ব্যাটিংয়ে সাকিব আল হাসান ও নাঈম শেখ। ছবি: এএফপি

গ্রুপ-বির শেষ ম্যাচ ডেতে যদি স্কটল্যান্ড ওমানকে হারায় ও বাংলাদেশ পাপুয়া নিউ গিনির বিপক্ষে জয় পায় তাহলে জয়ী দুই দল খেলবে মূল পর্ব বা সুপার টুয়েলভে। বাংলাদেশ গ্রুপ রানার্স আপ ও স্কটল্যান্ড চ্যাম্পিয়ন হিসেবে কোয়ালিফাই করবে।

ওমানকে হারিয়ে বিশ্বকাপে টিকে থাকার স্বস্তি পাচ্ছে বাংলাদেশ। তবে গ্রুপ-বি থেকে চ্যাম্পিয়ন হয়ে যেতে পারবে কিনা সেটার জন্য তাদের নির্ভর করতে হচ্ছে নিজেদের ও প্রতিপক্ষের শেষ ম্যাচের ওপর।

বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ মুখোমুখি হচ্ছে পাপুয়া নিউ গিনির (পিএনজি)। একই দিন দ্বিতীয় ম্যাচে ওমান খেলবে স্কটল্যান্ডের বিপক্ষে। এই দুই ম্যাচেই নির্ধারিত হবে গ্রুপ-বির ভাগ্য।

গ্রুপ-বিতে পয়েন্ট তালিকায় সবার ওপরে আছে স্কটল্যান্ড। ২ ম্যাচে তাদের পয়েন্ট চার। রান রেট ০.৫৭৫। দুইয়ে আছে ওমান। দুই ম্যাচে দুই পয়েন্টের সঙ্গে তাদের রান রেট ০.৬১৩। তিনে আছে বাংলাদেশ। ওমানের সমান দুই পয়েন্ট তাদের। তবে টাইগারদের রান রেট ০.৫০।

গ্রুপ-বির শেষ ম্যাচ ডেতে যদি স্কটল্যান্ড ওমানকে হারায় ও বাংলাদেশ পাপুয়া নিউ গিনির বিপক্ষে জয় পায় তাহলে জয়ী দুই দল খেলবে মূল পর্ব বা সুপার টুয়েলভে। বাংলাদেশ গ্রুপ রানার্স আপ ও স্কটল্যান্ড চ্যাম্পিয়ন হিসেবে কোয়ালিফাই করবে।

আর ওমান যদি স্কটল্যান্ডকে হারিয়ে দেয় আর বাংলাদেশ যদি পিএনজিকে হারায় তাহলে তিন দলের পয়েন্ট থাকবে চার। তবে রান রেটে পিছিয়ে যাওয়ায় স্কটল্যান্ড বিদায় নেবে বাছাইপর্ব থেকেই। সেক্ষেত্রে রানরেটের ভিত্তিতে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়ে যেতে পারে বাংলাদেশ।

যদি বাংলাদেশ পিএনজির বিপক্ষে অঘটনের শিকার হয় তারপরও তাদের সামনে মূল পর্বে যাওয়ার সুযোগ থাকবে।। সেক্ষেত্রে বাংলাদেশের প্রার্থনা করতে হবে যেন ওমান স্কটল্যান্ডের কাছে বড় ব্যবধানে হারে।

তবে নিশ্চিত ভাবেই সমীকরণের মারপ্যাঁচে যেতে চাইবেন না সাকিব-মুশফিকরা। পিএনজিকে হারিয়ে সুপার টুয়েলভ নিশ্চিত করতে চাইবে টাইগাররা।

আরও পড়ুন:
ভারতের টাকায় টিকে আছে পাকিস্তানের ক্রিকেট: রাজা
‘ভারতের চেয়ে পাকিস্তানে ক্রিকেট প্রতিভা বেশি’
‘ভারতকে বিশ্বকাপে হারাতে পারে পাকিস্তান’

শেয়ার করুন