চট্টগ্রামে হচ্ছে উন্নতমানের ক্রিকেট অ্যাকাডেমি

চট্টগ্রামে হচ্ছে উন্নতমানের ক্রিকেট অ্যাকাডেমি

আকরাম খান। ছবি: সংগৃহীত

আঞ্চলিক ক্রিকেটের উন্নয়নের অংশ চট্টগ্রামে খুব দ্রুত ক্রিকেট অ্যাকাডেমি চালু করতে যাচ্ছেন তারা। সিলেট এবং খুলনাতে আরও দুটি অ্যাকাডেমি হবে বলে জানান আকরাম ও দুর্জয়।

দীর্ঘদিন ধরে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের দুর্বলতার জায়গা হিসেবে বিবেচিত হয়ে আসছে আঞ্চলিক ক্রিকেটের অবকাঠামোগত উন্নতি। বোর্ড নির্বাচনের আগে বিষয়টি নিয়ে হুট করে নড়েচড়ে বসছেন সাবেক বোর্ড কর্তারা।

এতো দিন ধরে যেই বিষয়টিতে নজর দেয়ার সময় ছিল না বোর্ডের কর্তাদের, নির্বাচনের ঠিক আগ মুহূর্তে সেই বিষয়টিই সবার আগে রাখছেন সাবেক ক্রিকেটার আকরাম খান এবং সাবেক অধিনায়ক নাইমুর রহমান দুর্জয়।

আঞ্চলিক ক্রিকেটের উন্নয়নের অংশ চট্টগ্রামে দ্রুত ক্রিকেট অ্যাকাডেমি চালু করতে যাচ্ছেন তারা। একই সঙ্গে সিলেট এবং খুলনাতে দুটি একাডেমি হবে বলে জানান আকরাম এবং দুর্জয়।

সোমবার নির্বাচনের মনোনয়ন পত্র কেনার পর সাংবাদিকদের কাছে এমনটা জানান সাবেক তারা।

আকরাম খান বলেন, ‘প্রথমত বিভাগের জন্য, চট্টগ্রামের জন্য কাজ করছি। এরপর দেশের জন্য তো আমরা কাজ করছিই। আমাদের একটা অ্যাকাডেমি করার পরিকল্পনা ছিল। কিন্তু কোভিডের কারণে অনেক পিছিয়েছি। পরিস্থিতি ভালো থাকলে কিছুদিনের ভেতর আমরা কাজ শুরু করতে যাচ্ছি।’

‘চট্টগ্রাম বিভাগে যতগুলো জেলা রয়েছে প্রতিটির মেধাবী ক্রিকেটারদের নিয়ে প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করব। ২-৩ মাসের ভেতর আপনারা ফল পাবেন। চট্টগ্রাম, খুলনা ও সিলেটেও অ্যাকাডেমি হচ্ছে। বিশেষ করে চট্টগ্রামে আমরা উন্নতমানের অ্যাকাডেমি করতে যাচ্ছি।’

একই সুর ছিল জাতীয় দলের সাবেক অধিনায়ক নাইমুর রহমান দুর্জয়ের কণ্ঠেও।

তিনি বলেন, 'চট্টগ্রাম ক্রিকেট এসোসিয়েশনের কাজ শুরু হয়েছে। চট্টগ্রাম এবং সিলেটে আরও দুটি হবে। কাজও শুরু হয়ে গিয়েছে।’

শেয়ার করুন

মন্তব্য

‘ভুল ঠিক করে নেয়ার সময় বেশি নেই’

‘ভুল ঠিক করে নেয়ার সময় বেশি নেই’

শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে বাংলাদেশের প্রস্তুতি ম্যাচের একটি মুহূর্ত। ছবি: সংগৃহীত

সুপার টুয়েলভে রোববার শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে বিশ্বকাপের মূল পর্ব শুরু করবে বাংলাদেশ। সেক্ষেত্রে টাইগারদের হাতে সময় আছে এক দিন। সময় স্বল্পতাই দুর্বলতা কাটিয়ে ওঠার মূল চ্যালেঞ্জ বলে মন্তব্য করেন অভিজ্ঞ ক্রিকেট কোচ নাজমুল আবেদীন ফাহিম।

বিশ্বকাপে অংশ নেয়ার আগে ঘরের মাঠের অস্ট্রেলিয়া ও নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে দুর্দান্ত দুটি সিরিজ জেতে বাংলাদেশ। সেই জয়ের ফলে আত্মবিশ্বাসের তুঙ্গে থেকে বিশ্বকাপে খেলতে যায় টাইগাররা।

বিশ্বকাপের বাছাইপর্বের আগে তিনটি প্রস্তুতি ম্যাচ খেলে বাংলাদেশ। কেবল ওমানের এ-দলের বিপক্ষে জয় পায় মাহমুদুল্লাহর বাহিনী। বাকি দুই ম্যাচে শ্রীলঙ্কা ও আয়ারল্যান্ডের কাছে হারতে হয়।

এ ধারা অব্যাহত থাকে বাছাইপর্বের প্রথম ম্যাচে। স্কটল্যান্ডের বিপক্ষে ছয় রানে হারায় বিশ্বকাপ থেকে ছিটকে যাবার উপক্রম হয় টাইগারদের। তবে খাদের কিনারায় দাঁড়িয়ে ওমান ও পাপুয়া নিউগিনির বিপক্ষে জয়ে গ্রুপ রানার্স আপ হয়ে সুপার টুয়েলভ নিশ্চিত করে বাংলাদেশ।

দলীয় পারফরম্যান্সের অবনতি ছাপিয়ে লাইমলাইটে জায়গা করে নিয়েছে জাতীয় দলের ব্যাটারদের পারফরম্যন্স। ঘরের মাঠে দুটো সিরিজে যেমন ধুঁকতে হয়েছে লিটন-সৌম্যদের, ঠিক একইভাবে তাদের ধুঁকতে হয়েছে প্রস্তুতি ও বাছাইপর্বের ম্যাচগুলোতে।

ব্যাটারদের এই ধারাবাহিক ব্যর্থতা বিশ্বকাপের মূল পর্বে বাংলাদেশের জন্য চ্যালেঞ্জিং হবে বলে মনে করছেন ঘরোয়া ক্রিকেটের কিংবদন্তি কোচ নাজমুল আবেদীন ফাহিম।

নিউজবাংলাকে সাকিব-মুশফিকদের গুরু ফাহিম বলেন, ‘আমাদের প্রস্তুতিতে ঘাটতি ছিল। ঘরের মাঠে আমাদের পারফরম্যান্স যে খুব একটা ভালো ছিল না সেটা আমরা এখন এসে বুঝতে পারছি। হোম সিরিজে ব্যাটিংয়ের প্রস্তুতি ভালো হয়নি সেটি এখানে টের পাওয়া যাচ্ছে। এখান থেকে বের হওয়ার পথ খুঁজে বের করাটা আসল চ্যালেঞ্জ হবে।’

সুপার টুয়েলভে রোববার শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে বিশ্বকাপের মূল পর্ব শুরু করবে বাংলাদেশ। সেক্ষেত্রে টাইগারদের হাতে সময় আছে এক দিন। সময় স্বল্পতাই দুর্বলতা কাটিয়ে ওঠার মূল বাধা বলে মন্তব্য করেন অভিজ্ঞ এ ক্রিকেট কোচ।

তিনি বলেন, ‘বাছাইপর্বের প্রথম ম্যাচ আমরা হেরেছি। পরের ম্যাচগুলো আমাদের সামর্থ্য ও অভিজ্ঞতার কারণে টিকে গেছি। হোম সিরিজগুলোর যে নেতিবাচক প্রভাব ছিল তার কারণেই কিন্তু এখানে এসে ম্যাচ হারলাম। স্কটল্যান্ডের বিপক্ষে হারলাম।’

তিনি যোগ করেন, ‘আমরা হারের মধ্য দিয়ে দলকে গোছাচ্ছিলাম। প্রক্রিয়াটা চলছে। আমরা যে কোয়ালিফাই করেছি তার মধ্য দিয়ে একটা ধাপ এগিয়েছি।’

বাছাইপর্বের আগে প্রস্তুতি ম্যাচে বাংলাদেশ লঙ্কানদের বিপক্ষে হার নিয়ে মাঠ ছেড়েছে। মূল পর্বে এসে তাদের বিপক্ষে জয় দিয়ে শুরু করতে পারলে সেটি বাংলাদেশের জন্য ইতিবাচক হবে বলে জানান ফাহিম।

বলেন, ‘শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে যদি জিততে পারি তাহলে ধরে নিতে পারব একটা শক্তিশালী দল নিয়ে বিশ্বকাপে গিয়েছি। বিষয়টা এমন নয় যে আমরা বাকি ম্যাচগুলো জিতে যাব। কিন্তু বাকি দলের সঙ্গে পার্থক্য কমাতে পারব। শ্রীলঙ্কা ছাড়া বাকি দলগুলো অনেক শক্তিশালী। তাদের সঙ্গে ব্যবধান কমাতে পারলে আমাদের জন্য অনেক ভালো হবে এই বিশ্বকাপে। টি-টোয়েন্টি দল হিসেবে আমরা কিন্তু সেই পর্যায়ের না।’

সুপার টুয়েলভে বাংলাদেশকে লড়তে হবে ইংল্যান্ড, অস্ট্রেলিয়া, সাউথ আফ্রিকা, ওয়েস্ট ইন্ডিজ ও শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে। এই ছয় দলের ভেতর সেরা দুই দল খেলবে সেমি ফাইনালে।

সেমিফাইনালকে বাংলাদেশ তাদের প্রাথমিক লক্ষ্য হিসেবে নির্ধারণ করে দেশ ছেড়েছে।

শেয়ার করুন

ডাচদের ৪৪ রানে গুটিয়ে মূলপর্বে শ্রীলঙ্কা

ডাচদের ৪৪ রানে গুটিয়ে মূলপর্বে শ্রীলঙ্কা

ম্যাচ জয়ের পর শ্রীলঙ্কান ক্রিকেটারদের উদযাপন। ছবি: আইসিসি

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের বাছাইপর্বের শেষ ম্যাচে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ৪৪ রানে থেমে যায় নেদারল্যান্ডসের ইনিংস। আর সহজ লক্ষ্যের ম্যাচ মাত্র ৭.১ ওভারে ৮ উইকেটে জিতে নিয়ে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়ে সুপার টুয়েলভ নিশ্চিত করেছে শ্রীলঙ্কা।

২০১৪ সালে চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে প্রথমবার মাঠে নামে নেদারল্যান্ডস।

সে ম্যাচে ডাচদের ৩৯ রানে অল আউট করে দিয়ে লজ্জার সাগরে ডুবিয়েছিল কুমার সাঙ্গাকারার দল। সেই ঘটনার ৭ বছর পর আবারও লজ্জায় পড়তে হল ডাচদের। প্রতিপক্ষ এবারও শ্রীলঙ্কা।

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের বাছাইপর্বের শেষ ম্যাচে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ৪৪ রানে থেমে যায় নেদারল্যান্ডসের ইনিংস। আর সহজ লক্ষ্যের ম্যাচ মাত্র ৭.১ ওভারে ৮ উইকেটে জিতে নিয়ে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়ে সুপার টুয়েলভ নিশ্চিত করেছে শ্রীলঙ্কা।

সাগরিকার সাত বছর আগের সে ম্যাচ আর বাছাইপর্বের শুক্রবারের ম্যাচের ভেতর রয়েছে বেশ কিছু মিল। দুই ম্যাচে টস জিতে নেদারল্যান্ডসকে ব্যাটিংয়ে পাঠায় শ্রীলঙ্কা। দুটি ম্যাচেই তিনটি করে উইকেট শিকার করেন একজন স্পিনার ও একজন পেইসার।

২০১৪ সালে নেদারল্যান্ডসের ৬ উইকেট ঝুলিতে পুরেছিলেন পেইসার অ্যাঞ্জেলো ম্যাথিউস ও স্পিনার অজন্থা মেন্ডিস। আর শুক্রবারের ম্যাচে একইভাবে ছয় উইকেটের তিনটি নিয়েছেন পেইসার লাহিরু কুমারা আর তিনটি নিয়েছেন স্পিনার হাসারাঙ্গা ডি সিলভা।

টসে হেরে ব্যাট করতে নেমে লঙ্কান বোলিং তোপের সামনে শুরু থেকে অসহায় ছিলেন ডাচ ব্যাটাররা। কেবলমাত্র কলিন একারম্যানের ব্যাট থেকে আসে দুই অঙ্কের ইনিংস। বাকিদের ফিরতে হয় এক অঙ্কের রান করে।

শ্রীলঙ্কার হয়ে তিনটি করে উইকেট নেন হাসারাঙ্গা ডি সিলভা ও লাহিরু কুমারা। দুটি উইকেট ঝুলিতে পুরেন মাহেশ থিকসানা আর একটি উইকেট নেন দুশমন্থ চামিরা।

জবাবে ব্যাট করতে নেমে শুধুমাত্র পাথুম নিশাঙ্কা ও চারিথ আসালাঙ্কাকে হারিয়ে জয় পেয়ে যায় শ্রীলঙ্কা।

এ জয়ে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়ে মূল পর্বে এ-গ্রুপ নিশ্চিত করেছে শ্রীলঙ্কা। যার ফলে সুপার টুয়েলভে লঙ্কানরা প্রতিপক্ষ হিসেবে পেতে যাচ্ছে ইংল্যান্ড, অস্ট্রেলিয়া, সাউথ আফ্রিকা, ওয়েস্ট ইন্ডিজ ও বাংলাদেশকে।

২৪ তারিখ বাংলাদেশের বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে মূল পর্বের লড়াই শুরু করবে শ্রীলঙ্কা। বাংলাদেশ সময় বিকেল ৪ টায় শুরু হবে ম্যাচটি।

শেয়ার করুন

শুরু হচ্ছে বিশ্বকাপের মূল যুদ্ধ

 শুরু হচ্ছে বিশ্বকাপের মূল যুদ্ধ

ছবি: সংগৃহীত

অস্ট্রেলিয়া বনাম সাউথ আফ্রিকা ম্যাচ দিয়ে শুরু হতে যাচ্ছে বিশ্বকাপের মূল যুদ্ধ। যেখানে দুই গ্রুপে ভাগ হয়ে অংশ নেবে ১২ টি দল।

১৭ অক্টোবর ওমান ও পাপুয়া নিউগিনির ম্যাচ দিয়ে শুরু হয় টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের সপ্তম আসরের। শুক্রবার আয়ারল্যান্ড ও শ্রীলঙ্কার মধ্যকার ম্যাচ দিয়ে শেষ হয় বাছাইপর্বের খেলা।

শনিবার অস্ট্রেলিয়া বনাম সাউথ আফ্রিকা ম্যাচ দিয়ে শুরু হতে যাচ্ছে বিশ্বকাপের মূল যুদ্ধ। যেখানে দুই গ্রুপে ভাগ হয়ে অংশ নেবে ১২ টি দল।

টি-টোয়েন্টি র‍্যাঙ্কিংয়ের সেরা আট দল আগে নিশ্চিত করে সুপার টুয়েলভ। পরের আট দল থেকে বাছাইপর্বের মধ্য দিয়ে সুপার টুয়েলভ নিশ্চিত করেছে আরও চারটি দল।

বাছাইপর্বের দুই গ্রুপের সেরা দুই দল জায়গা করে নিয়েছে সুপার টুয়েলভের বাকি সদস্য হিসেবে। এ-গ্রুপ থেকে মূল পর্ব নিশ্চিত করেছে শ্রীলঙ্কা ও নবাগত নামিবিয়া। আর বি-গ্রুপ থেকে মূল পর্বে খেলার যোগ্যতা অর্জন করেছে স্কটল্যান্ড ও বাংলাদেশ।

সুপার টুয়েলভের এ-গ্রুপে আগে থেকেই জায়গা করে নেয়া চার দল হল ইংল্যান্ড, অস্ট্রেলিয়া, সাউথ আফ্রিকা ও ওয়েস্ট ইন্ডিজ। আর বি-গ্রুপে রয়েছে ভারত, পাকিস্তান, নিউজিল্যান্ড ও আফগানিস্তান।

বাছাইপর্বে এ-গ্রুপ থেকে চ্যাম্পিয়ন হওয়ায় সুপার টুয়েলভে শ্রীলঙ্কা খেলবে এ-গ্রুপে। অপরদিকে বি-গ্রুপ থেকে রানার্স আপ হওয়ায় বাংলাদেশও খেলবে একই গ্রুপে।

ফলে সুপার টুয়েলভে এ-গ্রুপে লড়বে ইংল্যান্ড, অস্ট্রেলিয়া, সাউথ আফ্রিকা, ওয়েস্ট ইন্ডিজ, বাংলাদেশ ও শ্রীলঙ্কা।

অপরদিকে বি-গ্রুপ থেকে চ্যাম্পিয়ন হওয়ায় মূল পর্বে বি-গ্রুপে খেলবে স্কটল্যান্ড। আর এ-গ্রুপ থেকে রানার্স আপ হওয়ায় নবাগত নামিবিয়া খেলবে একই গ্রুপে।

সেক্ষেত্রে বি-গ্রুপের খেলায় মুখোমুখি হবে ভারত, পাকিস্তান, নিউজিল্যান্ড, আফগানিস্তান, স্কটল্যান্ড ও নামিবিয়া।

২৩ অক্টোবর থেকে শুরু হয়ে সুপার টুয়েলভের খেলা চলবে ৮ নভেম্বর পর্যন্ত।

সুপার টুয়েলভের দুই গ্রুপ থেকে সেরা চার দল খেলার সুযোগ পাবে সেমি ফাইনালে। ১০ ও ১১ নভেম্বর অনুষ্ঠিত হবে সেমি ফাইনালের ম্যাচ দুটি।

এরপর ১৪ নভেম্বর ফাইনালের মধ্য দিয়ে পর্দা নামবে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের সপ্তম আসরের।

বাংলাদেশের সুপার টুয়েলভের সূচি:

২৪ অক্টোবর বিকেল ৪টা- বাংলাদেশ বনাম শ্রীলঙ্কা

২৭ অক্টোবর বিকেল ৪টা- বাংলাদেশ বনাম ইংল্যান্ড

২৯ অক্টোবর বিকেল ৪টা- বাংলাদেশ বনাম ওয়েস্ট ইন্ডিজ

২ নভেম্বর বিকেল ৪টা- বাংলাদেশ বনাম সাউথ আফ্রিকা

৪ নভেম্বর বিকেল ৪টা- বাংলাদেশ বনাম অস্ট্রেলিয়া

শেয়ার করুন

ইতিহাস গড়ল নামিবিয়া

ইতিহাস গড়ল নামিবিয়া

ডেভিড ভিসের উইকেট উদযাপন। ছবি: টুইটার

আয়রল্যান্ডকে আট উইকেটে হারিয়েছে নামিবিয়া। আইরিশদের করা আট উইকেটে ১২৫ রানের স্কোরকে ৯ বল ও আট উইকেট অক্ষত রেখে ছাড়িয়ে যায় আফ্রিকার দেশটি।

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের বাছাইপর্বের দ্বিতীয় ম্যাচে ডেভিড ভিসের হাত ধরে ইতিহাস গড়ে নবাগত নামিবিয়া। নেদারল্যান্ডসকে ৬ উইকেটে হারিয়ে পায় নিজেদের প্রথম জয়।

সেই ভিসের হাত ধরে আবার ইতিহাস গড়ল আফ্রিকার দেশটি। আয়ারল্যান্ডকে ৮ উইকেটে হারিয়ে জায়গা করে নিল বিশ্বকাপের সুপার টুয়েলভে।

দুবাইয়ের শারজাহ ক্রিকেট স্টেডিয়ামে টসে জিতে ব্যাট করতে নেমে উড়ন্ত সূচনা করে আয়ারল্যান্ড। দুই ওপেনার পল স্টার্লিং ও কেভিন ও' ব্রায়ানের জুটিতে ভর করে শুরুতে ৬২ রানের পুঁজি পায় আয়ারল্যান্ড।

দলীয় ৬২ রানে পল স্টার্লিং সাজঘরে ফিরলে ধস নামে আইরিশ ব্যাটিং শিবিরে।

ডেভিড ভিশে, ইয়ান ফ্রাইলিংকের বোলিং তোপের সামনে স্টার্লিং, ও' ব্রায়ান আর অ্যান্ডি নলবার্নি ছাড়া অন্যরা দুই অঙ্কের রান ছোঁয়ার আগে আউট হন।

শেষ পর্যন্ত বাঁচা মরার ম্যাচে ৮ উইকেটের খরচায় ১২৫ রানের পুঁজি পায় আয়ারল্যান্ড।

জবাবে ব্যাট করতে নেমে দলীয় ১৫ রানে কার্টিস ক্যামফারের শিকার বনে সাজঘরে ফেরেন নামিবিয়ার ওপেনার ক্রেইগ উইলিয়ামস। ৩২ বলে ২৪ করে ফেরেন আরেক ওপেনার জেইন গ্রিন।

এরপর বাকি কাজটা সারেন গেরহার্ড এরাসমুস ও ডেভিড ভিসে মিলে। দুই জনের দায়িত্বশীল ব্যাটিংয়ে ৯ বল অক্ষত রেখে ৮ উইকেটের জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে নবাগত দলটি।

ব্যাট হাতে ১৪ বলে ২৮ রানের ইনিংস আর বল হাতে দুই উইকেট নেয়ায় ম্যাচ সেরার পুরস্কার পান ডেভিড ভিসে।

শেয়ার করুন

জিম্বাবুয়েতে দর্শক পাচ্ছেন সালমা খাতুনরা

জিম্বাবুয়েতে দর্শক পাচ্ছেন সালমা খাতুনরা

অনুশীলনে বাংলাদেশ নারী দলের ক্রিকেটাররা। ছবি: বিসিবি

বোর্ডের দেয়া তথ্য মতে এক হাজার টিকা গ্রহীতাকে দেয়া হবে মাঠে বসে ম্যাচ দেখার সুযোগ। শুক্রবার এক বিবৃতিতে বিষয়টি নিশ্চিত করে জিম্বাবুয়ে ক্রিকেট বোর্ড।

চলতি বছরের নভেম্বর শুরু হচ্ছে নারী বিশ্বকাপের বাছাইপর্ব। বাছাইপর্বে পরীক্ষা দেয়ার আগে জিম্বাবুয়ে সফরে যাচ্ছেন জাতীয় দলের নারী ক্রিকেটাররা। নভেম্বরের শুরুতে জিম্বাবুয়ে যাবেন রুমানা-সালমারা।

জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ খেলবে বাংলাদেশের নারী ক্রিকেটাররা। আর এই সিরিজের মধ্য দিয়ে মাঠে দর্শক ফেরাতে যাচ্ছে জিম্বাবুয়ে ক্রিকেট বোর্ড (জেডসি)। ২০২০ সালের জানুয়ারিতে করোনাভাইরাসের কারণে মাঠে দর্শক প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা জারি করেছিল জিম্বাবুয়ে সরকার।

বোর্ডের দেয়া তথ্য মতে এক হাজার টিকা গ্রহীতাকে দেয়া হবে মাঠে বসে ম্যাচ দেখার সুযোগ। শুক্রবার এক বিবৃতিতে বিষয়টি নিশ্চিত করে জিম্বাবুয়ে ক্রিকেট বোর্ড।

বিবৃতিতে বলা হয়, ‘এক হাজার ক্রিকেটভক্ত, যারা কিনা পুরোপুরি কোভিডরোধী টিকা নেয়া, তাদের প্রতিটি ম্যাচ মাঠে বসে দেখার সুযোগ দেয়া হবে। তবে সে জন্য প্রমাণস্বরূপ মাঠে প্রবেশের সময় তাদের ভ্যাকসিন সনদ দেখাতে হবে।’

বিশ্বকাপের বাছাইপর্বের আগে প্রস্তুতি হিসেবে খেলা হবে সিরিজটি। জিম্বাবুয়ের হারারেতে নভেম্বরের ২১ তারিখ থেকে শুরু হবে বাছাইপর্বের ম্যাচগুলো।

বাছাইপর্বে বাংলাদেশের প্রতিপক্ষ আয়ারল্যান্ড, নেদারল্যান্ডস, পাকিস্তান, শ্রীলঙ্কা, পাপুয়া নিউ গিনি, থাইল্যান্ড, ওয়েস্ট ইন্ডিজ, জিম্বাবুয়ে ও আমেরিকা।

২১ নভেম্বর থেকে শুরু হবে বিশ্বকাপ বাছাইপর্ব। ৫ ডিসেম্বরে হবে এই পর্বের শেষ খেলা। আর নিউজিল্যান্ডে ২০২২ সালের ৪ মার্চ থেকে শুরু হবে বিশ্বকাপ। চলবে ৩ এপ্রিল পর্যন্ত।

গত বছর মার্চে সবশেষ আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেলেছেন জাতীয় দলের নারী ক্রিকেটাররা। এরপর করোনার কারণে লম্বা সময় ধরে নেই তাদের কোনো খেলা।

করোনার সময়ে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি) পুরুষদের ক্রিকেট ফিরলেও প্রায় দেড় বছর ধরে বন্ধ রয়েছে নারী ক্রিকেটের সফর। মাঝে ইমার্জিং দলের হয়ে সাউথ আফ্রিকা এমার্জিং দলের বিপক্ষে খেলেন রুমানা-জ্যোতিরা। তবে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেলা হয়নি।

শেয়ার করুন

সুপার টুয়েলভ খেলতে দুবাইয়ে সাকিব-মুশফিকরা

সুপার টুয়েলভ খেলতে দুবাইয়ে সাকিব-মুশফিকরা

বিমানবন্দরে টিম টাইগার্স। ফাইল ছবি

সুপার টুয়েলভের ম্যাচগুলো খেলতে শুক্রবার দুবাই পৌঁছেছেন জাতীয় দলের ক্রিকেটাররা। বাংলাদেশ সময় সন্ধ্যা ছয়টায় দুবাই পৌঁছেছে দল।

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের বাছাইপর্ব শেষ হয়েছে বাংলাদেশের গত বৃহস্পতিবার। বাছাইপর্ব উৎরে যাওয়ায় এবারে টাইগারদের লক্ষ্য সুপার টুয়েলভ।

সুপার টুয়েলভের ম্যাচগুলো খেলতে শুক্রবার দুবাই পৌঁছেছেন সাকিব-রিয়াদরা। বাংলাদেশ সময় শুক্রবার সন্ধ্যা ছয়টায় দুবাই পৌঁছেছে দল।

সুপার টুয়েলভে বাংলাদেশের ঠাঁই হয়েছে এ-গ্রুপে। যেখানে বাংলাদেশকে লড়তে হবে ইংল্যান্ড, অস্ট্রেলিয়া, সাউথ আফ্রিকা, ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে।

পাশাপাশি বাছাইপর্বের এ-গ্রুপ থেকে সম্ভাব্য গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন শ্রীলঙ্কাও থাকবে বাংলাদেশের প্রতিপক্ষ হিসেবে।

বাছাইপর্বে স্কটল্যান্ড তিন ম্যাচ জিতে নেয়ার গ্রুপ রানার্স আপ হয়েই বিশ্বকাপের মূল পর্বে যাচ্ছে বাংলাদেশ। আগামী ২৪ অক্টোবর শ্রীলঙ্কার (সম্ভাব্য) বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে শুরু হবে টাইগারদের মূল পর্বের লড়াই।

টাইগারদের সুপার টুয়েলভের সূচি:

২৪ অক্টোবর বিকেল ৪টা- বাংলাদেশ বনাম শ্রীলঙ্কা (যদি শ্রীলঙ্কা গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়)

২৭ অক্টোবর বিকেল ৪টা- বাংলাদেশ বনাম ইংল্যান্ড

২৯ অক্টোবর বিকেল ৪টা- বাংলাদেশ বনাম ওয়েস্ট ইন্ডিজ

২ নভেম্বর বিকেল ৪টা- বাংলাদেশ বনাম সাউথ আফ্রিকা

৪ নভেম্বর বিকেল ৪টা- বাংলাদেশ বনাম অস্ট্রেলিয়া

শেয়ার করুন

খুদে ক্রিকেটার সাদিদের দায়িত্ব নিলেন ব‌রিশালের ডিসি

খুদে ক্রিকেটার সাদিদের দায়িত্ব নিলেন ব‌রিশালের ডিসি

ব‌রিশাল জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে আসাদুজ্জামান সাদিদ। ছবি: নিউজবাংলা

সাদিদ ও তার পরিবারের স্বপ্ন জাতীয় দলের হয়ে ক্রিকেট খেলা। বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসানের মতো ক্রিকেটার হতে চায় সে। তার এই স্বপ্ন পূরণের দায়িত্ব নিয়েছে বরিশাল জেলা প্রশাসন।

সম্প্রতি খুদে ক্রিকেটার আসাদুজ্জামান সাদিদের বোলিংয়ের ভিডিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হয়। সেই ভিডিও দৃষ্টি কেড়েছে শচীন টেন্ডুলকার ও শেন ওয়ার্নের মতো কিংবদন্তিদের।

ভাইরাল হওয়া সাদিদ বরিশালের ৪ নম্বর ওয়ার্ডের মহাবাজ এলাকার উলালঘুনি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রথম শ্রেণির ছাত্র।

তার ও তার পরিবারের স্বপ্ন জাতীয় দলের হয়ে ক্রিকেট খেলা। বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসানের মতো ক্রিকেটার হতে চায় সাদিদ। তার এই স্বপ্ন পূরণের দায়িত্ব নিয়েছে বরিশাল জেলা প্রশাসন।

বৃহস্পতিবার রাতে সাদিদকে তার মামা সিরাজুল ইসলাম শুভসহ নিজ কার্যালয়ে আমন্ত্রণ জানান বরিশালের জেলা প্রশাসক (ডিসি) জসীম উদ্দীন হায়দার। জেলা প্রশাসক সাদিদের সার্বিক দায়িত্ব গ্রহণের সিদ্ধান্ত জানান।

তিনি বলেন, ‘সাদিদ বরিশালের গর্ব। এত কম বয়সে, বিস্ময় বালক হয়ে নিজের প্রতিভা প্রকাশ করেছে। যার পরিপ্রেক্ষিতে বিশ্বের সেরা খেলোয়াড়দের মন কেড়েছে সে। আমাদের উচিত ওর দেখভাল করা, যাতে করে ওর হাতের জাদু হা‌রিয়ে না যায়। সাদিদের খেলার জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। আমরা সাদিদের প্রতিভা ধরে রাখতে ওর পাশে থাকব।’

সাদিদের সঙ্গে এ সময় তার মামা ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন বিসিবির পরিচালক আলমগীর খান আলো।

ছয় বছরের সাদিদের বাবা নেই। মা গৃহিণী। সাদিদ নানাবাড়ি থাকে। মামা সিরাজুল ইসলাম সাদিদের ক্রিকেটের প্রতি আগ্রহ দেখে তাকে নিয়ে প্রতিদিন অনুশীলনে যান।

ভাগ্নের বোলিংয়ের ভিডিও তেমন কিছু না ভেবেই ফেসবুকে আপলোড দিয়ে দেন।

ভিডিওতে ছোট্ট এই শিশুকে দেখা যায় লেগ স্পিন দিয়ে ব্যাটারদের পরাস্ত করতে। মুগ্ধ হয়ে শচীন টেন্ডুলকার সাদিদের ভিডিও পোস্ট করেন। সেখানে কমেন্ট করে বিশ্বসেরা লেগ স্পিনার রাশিদ খানও তার প্রশংসা করেন।

সর্বকালের সেরা লেগস্পিনার হিসেবে খ্যাত শেন ওয়ার্নও নিজের টুইটারে ভিডিওটি পোস্ট করেন।

শেয়ার করুন