দুটি ক্রিকেট মাঠ পাচ্ছে মাশরাফির নড়াইল

দুটি ক্রিকেট মাঠ পাচ্ছে মাশরাফির নড়াইল

ছবি: সংগৃহীত

জাতীয় সংসদে বুধবার যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রনালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির ১৫তম বৈঠকে এই সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। মন্ত্রণালয়কে সুপারিশ করা হয় দুটি ক্রিকেট মাঠ বিশেষ বরাদ্দের মাধ্যমে জরুরি ভিত্তিতে সংস্কারের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের।

জাতীয় দলের সফলতম অধিনায়ক মাশরাফি বিন মোর্ত্তজা নড়াইল-২ আসনের সংসদ সদস্য হওয়ার পর থেকে এলাকার উন্নয়নের সঙ্গে উন্নয়ন করেছেন স্থানীয় ক্রিকেটের অবকাঠামোর। তারই ধারাবাহিকতায় বিশেষ ব্যবস্থায় সংস্কারের আওতায় আসতে যাচ্ছে তার এলাকার দুটি মাঠ।

জাতীয় সংসদে বুধবার যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রনালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির ১৫তম বৈঠকে এই সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। মন্ত্রণালয়কে সুপারিশ করা হয় দুটি ক্রিকেট মাঠ বিশেষ বরাদ্দের মাধ্যমে জরুরি ভিত্তিতে সংস্কারের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের।

বৈঠকে বাংলাদেশ টেনিস ফেডারেশনের সার্বিক কার্যক্রম সম্পর্কে বিশদ আলোচনা করা হয়। সেই সঙ্গে জেলা পর্যায়ের টেনিস কোর্টগুলো সাধারণ খেলোয়ারদের জন্য উন্মুক্ত করে দেয়া, আন্তর্জাতিক মানের প্রশিক্ষণ ও অন্যান্য সকল সুযোগ সুবিধা বৃদ্ধিসহ প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণের জন্য কমিটি কর্তৃক মন্ত্রণালয়কে সুপারিশ করা হয়।

পাশাপাশি যুব উন্নয়ন অধিদপ্তরের জেলা ও উপজেলা যুব উন্নয়ন কর্মকর্তাদের বিশেষ কারণ ছাড়া পাঁচ বছর পর বদলি বাধ্যতামূলক করার জন্য বৈঠকে সুপারিশ করা হয়।

সভার সভাপতিত্ব করেন ‘যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সভাপতি আবদুল্লাহ আল ইসলাম জ্যাকব। এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন কমিটির সদস্য যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বপ্রাপ্ত প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল, আব্দুস সালাম মুর্শেদী, জুয়েল আরেং, মাশরাফি বিন মোর্ত্তজা ও জাকিয়া তাবাসসুম।

আরও পড়ুন:
ওমরাহ থেকে ফিরেছেন সাত ক্রিকেটার
বিসিবির বিশ্বকাপ আয়োজনে প্রধানমন্ত্রীর সমর্থন
রমিজ রাজার প্রস্তাবে সাড়া দেয়নি বিসিবি
চিরনিদ্রায় জালাল চৌধুরী
নেপালে খেলার এনওসি পেলেন তামিম

শেয়ার করুন

মন্তব্য

মুশফিকের উইকেটকে টার্নিং পয়েন্ট বললেন অধিনায়ক

মুশফিকের উইকেটকে টার্নিং পয়েন্ট বললেন অধিনায়ক

স্কটল্যান্ডের বিপক্ষে ব্যাটিংয়ে মুশফিকুর রহিম। ছবি: এএফপি

সাকিবের পরই মুশফিকের বিলিয়ে দিয়ে আসা উইকেটকে ম্যাচের টার্নিং পয়েন্ট হিসেবে মানছেন জাতীয় দলের দলপতি মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ। ম্যাচ শেষে সংবাদ সম্মেলনে এমনটাই বলেন তিনি।

প্রস্তুতি ম্যাচে টানা দুই পরাজয়ের ধারা থেকে বাংলাদেশ বাছাই পর্বেও বের হতে পারেনি। বাছাই পর্বের প্রথম ম্যাচে স্কটল্যান্ডের কাছে ছয় রানে হেরেছে টাইগাররা।

স্কটিশদের দেয়া ১৪১ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে শুরুতে দুই ওপেনার সৌম্য সরকার ও লিটন দাসকে হারায় বাংলাদেশ। এরপর সাকিব আল হাসানকে নিয়ে দুর্দান্ত ৪৭ রানের এক জুটি গড়ে পরিস্থিতি সামাল দেন মুশফিকুর রহিম।

বড় শট খেলতে গিয়ে সাকিব মাঠ ছাড়লেও লড়াই চালিয়ে যাচ্ছিলেন মুশি। খেলছিলেনও দুর্দান্ত। কিন্তু ক্রিস গ্রিভসের বল স্কুপ করতে বোল্ড হয়ে ফেরেন মুশি। তার এই ফিরে যাবার পরই অস্ত যাওয়া শুরু করে বাংলাদেশের জয়ের স্বপ্ন।

সাকিবের পরই মুশফিকের বিলিয়ে দিয়ে আসা উইকেটটিকে ম্যাচের টার্নিং পয়েন্ট হিসেবে মানছেন জাতীয় দলের দলপতি মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ। ম্যাচ শেষে সংবাদ সম্মেলনে এমনটাই বলেন তিনি।

মাহমুদুল্লাহ বলেন, ‘আমার মনে হয় মুশফিকের উইকেটটা ম্যাচের টার্নিং পয়েন্ট ছিল। মুশি আজকে ভালো খেলছিল। একজন সেট ব্যাটসম্যানের উইকেটে থাকাটা খুবই জরুরি।’

পাওয়ার প্লেতে দুই ওপেনারকে হারানোর পর অনেকটা ধীরগতিতে ব্যাট করেন সাকিব ও মুশফিক। তাতে বাংলাদেশ জয়ের পথে থাকলেও, মিডল অর্ডারের ব্যর্থতায় লক্ষ্যে পৌঁছাতে পারেনি দল, এমনটা মনে করছেন মাহমুদুল্লাহ।

তিনি বলেন, ‘ব্যাটিংয়ে প্রথম ছয় ওভারে আমরা রান করতে পারিনি। আমরা চাচ্ছিলাম প্রথম পাওয়ার প্লে যেন ভালোভাবে ব্যবহার করতে পারি। ১৪০ তাড়া করতে ভালো একটা শুরু প্রয়োজন।

‘মুশফিক-সাকিব কিছুটা রিকভারিও করেছিল। কিন্তু মিডলে আমরা ভালো ব্যাটিং করতে পারিনি। যেটা আমি বললাম যে উইকেট ভালো ছিল, কিন্তু আমরা সেটি কাজে লাগাতে পারিনি। আমাদের ভুল বেশি ছিল আজকে।’

বাংলাদেশের বড় শক্তি স্পিনের বিপক্ষে সহজাত দক্ষতা। তবে আজকে স্পিনারদের কাছেই ম্যাচের গুরুত্বপূর্ণ সময়ে উইকেট বিলিয়ে এসেছেন ব্যাটসম্যানরা। সেটি চোখ এড়ায়নি অধিনায়কেরও।

মাহমুদুল্লাহ বলেন, ‘একটা পরিকল্পনা ছিল স্পিনারদের বেশি আক্রমণ করার। তাদের ওভারে যদি রান হতো তাহলে আমরা লক্ষ্যে পৌঁছাতে পারতাম। মাঝখানে কয়েকটি উইকেট হারিয়েছি। বড় ওভারগুলো আমরা কাজে লাগাতে পারিনি, যার কারণে রান রেট বেড়ে গেছে। পরের ম্যাচে আমাদের সেগুলো মাথায় রাখতে হবে।’

১৯ অক্টোবর ওমানের বিপক্ষে বাছাই পর্বে নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে মাঠে নামবে বাংলাদেশ।

আরও পড়ুন:
ওমরাহ থেকে ফিরেছেন সাত ক্রিকেটার
বিসিবির বিশ্বকাপ আয়োজনে প্রধানমন্ত্রীর সমর্থন
রমিজ রাজার প্রস্তাবে সাড়া দেয়নি বিসিবি
চিরনিদ্রায় জালাল চৌধুরী
নেপালে খেলার এনওসি পেলেন তামিম

শেয়ার করুন

স্কটল্যান্ডের সঙ্গেও পেরে উঠল না বাংলাদেশ

স্কটল্যান্ডের সঙ্গেও পেরে উঠল না বাংলাদেশ

ছবি: টুইটার

আইসিসির সহযোগী সদস্য স্কটল্যান্ডের কাছে ৬ রানে হেরে গেছে মাহমদুল্লাহর দল। ১৪১ রানের টার্গেটে ব্যাট করতে নেমে সাত উইকেটে ১৩৪ রানের বেশি করতে পারেনি সাকিব-মুশফিকরা।

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের বাছাইপর্বে খেলার আগে তিনটি প্রস্তুতি ম্যাচ খেলে বাংলাদেশ। তিন ম্যাচে তারা জেতে শুধু ওমানের দ্বিতীয় সারির দলের বিপক্ষে। শ্রীলঙ্কা ও আয়ারল্যান্ডের জাতীয় দলের বিপক্ষে হারকে সঙ্গী করে মাঠ ছাড়তে হয়েছে রাসেল ডমিঙ্গোর শিষ্যদের।

প্রস্তুতি ম্যাচের পরাজয়ের সেই ধারা লিটন-সৌম্যরা অব্যাহত রেখেছেন বাছাইপর্বেও। বাছাইপর্বের প্রথম ম্যাচে স্কটল্যান্ডের কাছে ছয় রানে হারতে হয়েছে টাইগারদের।

র‍্যাঙ্কিংয়ে বাংলাদেশের চেয়ে আট ধাপ নিচের দল স্কটল্যান্ড। র‍্যাঙ্কিংয়ের বেশ নিচে থাকা দলটির বিপক্ষে ক্রিকেটের শর্টার ফরম্যাটে দুইবারের দেখায় দুইবার হারল লাল সবুজের প্রতিনিধিরা।

দুই দলের প্রথম দেখায় বাংলাদেশ পেয়েছিল ৩৪ রানে হারের স্বাদ। ফল বদলায়নি দ্বিতীয় দেখাতেও। শুধু বদলেছে হারের ব্যবধান। দ্বিতীয় ম্যাচে স্কটিশদের কাছে ছয় রানের হার নিয়ে মাঠ ছেড়েছে মাহমুদুল্লাহ রিয়াদের দল।

স্কটিশদের করা ১৪০ রানের জবাবে ৭ উইকেটের খরচায় ১৩৪ রানে থামে বাংলাদেশের রানের চাকা।

বড় লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে বরাবরের মতো বাংলাদেশ শুরুতে হারায় সৌম্য সরকার ও লিটন দাসকে। দুই জনই উপহার দেন পাঁচ রানের ইনিংস।

১৮ রানে দুই উইকেট হারানোর পর দুই অভিজ্ঞ ব্যাটসম্যান সাকিব আল হাসান ও মুশফিকুর রহিম তৃতীয় উইকেটে সামাল দিয়েছেন বাংলাদেশকে। গড়েন ৪৭ রানের জুটি।

জয়ের স্বপ্ন দেখানো এই জুটি ভাঙ্গেন ক্রিস গ্রিভস। ক্যালাম ম্যাকলয়েডের তালুবন্দি করে সাকিবকে ফেরান ২০ রানে। সতীর্থের বিদায় যেন মানতে পারছিলেন না মুশফিক। গ্রিভসকে স্কুপ করতে গিয়ে বোল্ড হয়ে ফেরেন সাজঘরে।

সাকিবের ব্যাট থেকে আসে ২০ আর মুশফিক ফেরেন ইনিংস সর্বোচ্চ ৩৮ রান করে।

সাকিব-মুশফিক ফিরলেও আশা জিইয়ে রাখেন দলপতি মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ। তার ২৩ রানে বিদায়ের পর পরাজয় নিশ্চিত হয়ে যায় বাংলাদেশের।

শেষদিকে রোমাঞ্চ সৃষ্টি করেন মাহেদি হাসান। শেষ ওভারে জয়ের জন্য ২৫ রান দরকার ছিল বাংলাদেশের। ১৭ রানের বেশি নিতে পারেননি মাহেদী হাসান।

দুটি বাউন্ডার ও একটু ছক্কা হাঁকালেও জয়ের জন্য সেটি যথেষ্ট ছিল না। শেষ পর্যন্ত সাত উইকেটে ১৩৪ রানে থামে বাংলাদেশের ইনিংস। হার মানতে হয় ছয় রানে।

এর আগে, মাসকাটের এল এমিরাত স্টেডিয়ামে আগে টসে জিতে স্কটল্যান্ডকে বোলিংয়ে পাঠান মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ। ব্যাট করতে নেমে টাইগার স্পিন বিষে নীল হলেও সেটি সামলে নিয়ে বাংলাদেশের সামনে ১৪১ রানের পাহাড়সম লক্ষ্য দাঁড় করায় স্কটিশরা।

৫৩ রানে ছয় উইকেট হারিয়ে ফেলা স্কটল্যান্ড লোয়ার মিডল অর্ডারের দৃঢ়তায় নয় উইকেটে ১৪০ রানের সংগ্রহ গড়ে।

সর্বোচ্চ ৪৫ রান করেন গ্রিভস। ম্যাচসেরাও হয়েছেন এ অলরাউন্ডার। ১৯ অক্টোবর ওমানের বিপক্ষে নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে লড়বে বাংলাদেশ।

আরও পড়ুন:
ওমরাহ থেকে ফিরেছেন সাত ক্রিকেটার
বিসিবির বিশ্বকাপ আয়োজনে প্রধানমন্ত্রীর সমর্থন
রমিজ রাজার প্রস্তাবে সাড়া দেয়নি বিসিবি
চিরনিদ্রায় জালাল চৌধুরী
নেপালে খেলার এনওসি পেলেন তামিম

শেয়ার করুন

টি-টোয়েন্টিতে সর্বোচ্চ উইকেট এখন সাকিবের

টি-টোয়েন্টিতে সর্বোচ্চ উইকেট এখন সাকিবের

মুশফিকুর রহিমের সঙ্গে উইকেট উদযাপন করছেন সাকিব আল হাসান। ছবি: আইসিসি

মালিঙ্গার রেকর্ড ছাড়াতে সাকিবকে খেলতে হয়েছে ৮৮ ইনিংস। স্কটল্যান্ডের বিপক্ষে নিজের তৃতীয় ওভারে স্কটিশ ব্যাটসম্যান রিচি ব্যারিংটনকে ফিরিয়ে রেকর্ডবুকে প্রবেশ করেন বিশ্বসেরা এই অলরাউন্ডার।

সাকিব আল হাসান মাঠে নামা মানেই যেন নতুন রেকর্ডের সৃষ্টি। টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে সর্বোচ্চ উইকেটশিকারি হিসেবে রেকর্ডবুকে নিজের নাম তোলার হাতছানি ছিল নিউজিল্যান্ড সিরিজ থেকেই। কাছে এসেও রেকর্ড ছুঁতে পারছিলেন না বিশ্বসেরা তারকা।

অবশেষে টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে উইকেট সংখ্যায় শ্রীলঙ্কার লাসিথ মালিঙ্গাকে ছাড়ালেন বাঁহাতি এই স্পিনার।

মালিঙ্গার করা সেই রেকর্ড ছাড়াতে সাকিবকে খেলতে হয়েছে ৮৮ ইনিংস। স্কটল্যান্ডের বিপক্ষে নিজের তৃতীয় ওভারে স্কটিশ ব্যাটসম্যান রিচি ব্যারিংটনকে ফিরিয়ে রেকর্ডবুকে প্রবেশ করেন বিশ্বসেরা এই অলরাউন্ডার।

বাউন্ডারিতে ব্যারিংটনের ক্যাচ নেন আফিফ হোসেন। এর এক বল মাইকেল লিস্ককে আউট করে সাকিব ছাড়িয়ে যান মালিঙ্গাকে।

রেকর্ড ভাঙ্গার সঙ্গে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ১২ হাজার রান ও ৬০০ উইকেট পাওয়া একমাত্র ক্রিকেটার হলেন সাকিব।

চলতি বিশ্বকাপে আরও একটি রেকর্ড হাতছানি দিচ্ছে ক্রিকেটের এই বরপুত্রকে। আর মাত্র আট উইকেট পেলেই সাকিব বনে যাবেন টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে সর্বোচ্চ উইকেটশিকারি।

বর্তমানে এই রেকর্ডটি রয়েছে সাবেক পাকিস্তানি স্পিনার সাহিদ আফ্রিদির। আফ্রিদির উইকেট ৩৯টি। চলতি বিশ্বকাপেই আফ্রিদিকে ছাড়িয়ে যাবেন সাকিব।

টি-টোয়েন্টির সর্বোচ্চ উইকেট:

১. সাকিব আল হাসান (বাংলাদেশ) ৮৮ ইনিংস- ১০৮ উইকেট

২. লাসিথ মালিঙ্গা (শ্রীলঙ্কা) ৮৩ ইনিংস- ১০৭ উইকেট

৩. টিম সাউদি (নিউজিল্যান্ড) ৮১ ইনিংস- ৯৯ উইকেট

৪. শাহিদ আফ্রিদি (পাকিস্তান) ৯৭ ইনিংস- ৯৮ উইকেট

৫. রাশিদ খান (আফগানিস্তান) ৫১ ইনিংস- ৯৫ উইকেট

আরও পড়ুন:
ওমরাহ থেকে ফিরেছেন সাত ক্রিকেটার
বিসিবির বিশ্বকাপ আয়োজনে প্রধানমন্ত্রীর সমর্থন
রমিজ রাজার প্রস্তাবে সাড়া দেয়নি বিসিবি
চিরনিদ্রায় জালাল চৌধুরী
নেপালে খেলার এনওসি পেলেন তামিম

শেয়ার করুন

দর্শকরা মিস করছেন তামিমকে

দর্শকরা মিস করছেন তামিমকে

দর্শকের ব্যানারে তামিমের জন্য বার্তা। ছবি: সংগৃহীত

গ্যালারিতে ম্যাচের সময় চোখে পড়ে একটি ব্যানার। যেখানে ইংরেজিতে লেখা ছিল, ‘মিস ইউ তামিম। বেস্ট অফ লাক টাইগার্স’। টিভি ক্যামেরাতেও বার দুয়েক দেখানো হয় ব্যানারটি।

মাসকাটের এল এমিরেত স্টেডিয়ামে ম্যাচের আগে থেকে দর্শকদের ভিড়। প্রবাসী ভক্তরা সকাল থেকেই অপেক্ষায় ছিলেন ম্যাচের।

গ্যালারিতে ম্যাচের সময় চোখে পড়ে একটি ব্যানার। যেখানে ইংরেজিতে লেখা ছিল, ‘মিস ইউ তামিম। বেস্ট অফ লাক টাইগার্স’ (আপনাকে মিস করছি তামিম। টাইগারদের জন্য শুভকামনা)। টিভি ক্যামেরাতেও বার দুয়েক দেখানো হয় ব্যানারটি।

বিশ্বকাপের মাসখানেক আগে নিজেকে টি-টোয়েন্টির সবচেয়ে বড় আসর থেকে সরিয়ে রাখেন। নিজের অনুপস্থিতিতে নাঈম শেখের মতো তরুণরা সুযোগ পাবেন এমন যুক্তি ছিল টাইগারদের সেরা ওপেনারের।

তবে বিশ্বকাপের প্রথম ম্যাচে তামিমকে হয়তো আরও মিস করেছে টাইগাররা। দুই ওপেনার লিটন দাস ও সৌম্য সরকার দুই জনই পাঁচ রান করে বিদায় নেন। ১৪১ রান তাড়া করায় পাওয়ার প্লের মধ্যেই ফেরেন দুই জন।

গত পাঁচ মাস ধরে বাংলাদেশ একাদশে নিয়মিত মুখ নাঈমকে বসিয়ে সৌম্যকে দিয়ে ওপেন করানোর সিদ্ধান্ত নেয় বাংলাদেশের টিম ম্যানেজমেন্ট।

তাদের এ সিদ্ধান্ত যে কাজে লাগেনি সেটা প্রমাণ করে দেন সৌম্য ও লিটন। তাদের ব্যর্থতায় তামিম ইকবালের জন্য হতাশাটা আরেকটু বাড়ে টাইগার ক্রিকেট ভক্তদের।

আরও পড়ুন:
ওমরাহ থেকে ফিরেছেন সাত ক্রিকেটার
বিসিবির বিশ্বকাপ আয়োজনে প্রধানমন্ত্রীর সমর্থন
রমিজ রাজার প্রস্তাবে সাড়া দেয়নি বিসিবি
চিরনিদ্রায় জালাল চৌধুরী
নেপালে খেলার এনওসি পেলেন তামিম

শেয়ার করুন

স্কটল্যান্ডের কাছে ৬ রানে হারল বাংলাদেশ

স্কটল্যান্ডের কাছে ৬ রানে হারল বাংলাদেশ

ছবি: টুইটার

আইসিসির সহযোগী সদস্য স্কটল্যান্ডের কাছে ৬ রানে হেরে গেছে মাহমদুল্লাহর দল। ১৪১ রানের টার্গেটে ব্যাট করতে নেমে সাত উইকেটে ১৩৪ রানের বেশি করতে পারেনি সাকিব-মুশফিকরা। 

বড় অঘটন দিয়েই বাছাইপর্ব শুরু হলো বাংলাদেশের। আইসিসির সহযোগী সদস্য স্কটল্যান্ডের কাছে ৬ রানে হেরে গেছে মাহমদুল্লাহর দল। ১৪১ রানের টার্গেটে ব্যাট করতে নেমে সাত উইকেটে ১৩৪ রানের বেশি করতে পারেনি সাকিব-মুশফিকরা।

আরও পড়ুন:
ওমরাহ থেকে ফিরেছেন সাত ক্রিকেটার
বিসিবির বিশ্বকাপ আয়োজনে প্রধানমন্ত্রীর সমর্থন
রমিজ রাজার প্রস্তাবে সাড়া দেয়নি বিসিবি
চিরনিদ্রায় জালাল চৌধুরী
নেপালে খেলার এনওসি পেলেন তামিম

শেয়ার করুন

মিরপুরের ফর্ম মাসকাটেও ধরে রাখলেন মাহেদী

মিরপুরের ফর্ম মাসকাটেও ধরে রাখলেন মাহেদী

মাহেদী হাসান। ছবি: এএফপি

তিন উইকেট ঝুলিতে পুরতে তিনি দিয়েছেন মাত্র ১৯ রান। চার ওভারের স্পেলে তার রয়েছে ১১টি ডট বল।

ঘরের মাঠে টাইগার ডানহাতি স্পিনার মাহেদী হাসান অস্ট্রেলিয়া এবং নিউজিল্যান্ড সিরিজে ছিলেন অসাধারণ। দুর্দান্ত পারফরম্যান্সে কুপোকাত করেন অজি ও কিউই ব্যাটারদের।

নিজের সেই দুর্দান্ত ফর্ম তিনি ধরে রাখলেন টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে এসেও। রীতিমতো নাজেহাল বানিয়ে ছেড়েছেন স্কটল্যান্ডের ব্যাটারদের।

নিজের প্রথম বিশ্বকাপের প্রথম ম্যাচে মাহেদী বাগিয়ে নিয়েছেন নিজের ক্যারিয়ার সেরা বোলিং ফিগার।

মিরপুরের ফর্ম মাসকাটেও ধরে রাখলেন মাহেদী

স্কটল্যান্ডের বিপক্ষে এদিন মাহেদী প্রথম আঘাত হানেন ম্যাচের অষ্টম ওভারে এসে। এক ওভারেই ফেরান বিপজ্জনক হয়ে উঠতে থাকা ম্যাথিউ ক্রস ও জর্জ মানসিকে।

মিরপুরের ফর্ম মাসকাটেও ধরে রাখলেন মাহেদী

এরপর দ্বাদশ ওভারের তৃতীয় বলে ফেরান ক্যালাম ম্যাকলয়েডকে।

এই তিন উইকেট ঝুলিতে পুরতে তিনি দিয়েছেন মাত্র ১৯ রান। চার ওভারের স্পেলে তার রয়েছে ১১টি ডট বল। আর এতেই ক্যারিয়ার সেরা বোলিং ফিগার পেয়ে যান এই তরুণ স্পিনার।

আরও পড়ুন:
ওমরাহ থেকে ফিরেছেন সাত ক্রিকেটার
বিসিবির বিশ্বকাপ আয়োজনে প্রধানমন্ত্রীর সমর্থন
রমিজ রাজার প্রস্তাবে সাড়া দেয়নি বিসিবি
চিরনিদ্রায় জালাল চৌধুরী
নেপালে খেলার এনওসি পেলেন তামিম

শেয়ার করুন

৯০ মাইলের ওপরে তাসকিন!

৯০ মাইলের ওপরে তাসকিন!

তাসকিন আহমেদ। ছবি: এএফপি

শুরু থেকে দারুণ গতি ধরে রেখে স্কটিশ ব্যাটারদের ওপর চড়াও হন তাসকিন। নিজের প্রথম ওভারে টানা দুটি ডেলিভারি করেন তিনি ঘণ্টায় ১৪৮ কিমি গতিতে। মাইলের হিসেব করলে যা ৯২ মাইলের কাছাকাছি।

লম্বা সময় ইনজুরির সঙ্গে যুদ্ধ করেছেন। লড়াই শেষে ফিরেছেন ক্রিকেটে। জাতীয় দলের জন্য নিজেকে দারুণভাবে প্রস্তুত করেছেন তাসকিন আহমেদ।

কড়া লকডাউনে সব যখন আটকে আছে, সে সময় নিজের ফিটনেস ধরে রাখতে তাসকিন ছিলেন বেশ তৎপর। একাই চালিয়ে গেছেন ফিটনেস ধরে রাখার অনুশীলন। ফলে ইনজুরি থেকে ক্রিকেটে ফিরেছেন দুর্বার হয়ে।

বরাবর দ্রুত গতির বোলার হিসেবে পরিচিতি পেলেও যথার্থ লাইন লেংথের অভাবে ভুগেছেন প্রায় সাত বছরের ক্যারিয়ারের অধিকাংশ সময়।

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে নিজেকে প্রমাণের মঞ্চ হিসেবে বেছে নেন তাসকিন। নিজের সেরা গতিতে ফেরার আভাস দেন স্কটল্যান্ডের বিপক্ষে বাছাইপর্বের প্রথম ম্যাচে।

শুরু থেকে দারুণ গতি ধরে রেখে স্কটিশ ব্যাটারদের ওপর চড়াও হন তাসকিন। নিজের প্রথম ওভারে টানা দুটি ডেলিভারি করেন তিনি ঘণ্টায় ১৪৮ কিমি গতিতে। মাইলের হিসেব করলে যা ৯২ মাইলের কাছাকাছি।

জাতীয় দলের হয়ে এখন পর্যন্ত এটিই তার সর্বোচ্চ গতির ডেলিভারি। এটি কোনো বাংলাদেশি বোলারের সর্বোচ্চ গতির ডেলিভারি নয়।

সর্বোচ্চ গতির ডেলিভারিটি এসেছে মাশরাফি মোর্ত্তজার কাছ থেকে। ১৪৯ কিমি গতিতে বল ছুড়েছিলেন সাবেক এই অধিনায়ক। ২০০১ সালে অকল্যান্ডে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে টেস্টে এই ডেলিভারিটি এসেছিল ম্যাশের হাত দিয়ে। তবে সেটির আনুষ্ঠানিক রেকর্ড নেই।

এছাড়াও ২০১৫ সালের বিশ্বকাপে জাতীয় দলের আরেক পেইসার রুবেল হোসেন ছুঁড়েছিলেন ১৪৭.৯ কিমি গতির ডেলিভারি।

আরও পড়ুন:
ওমরাহ থেকে ফিরেছেন সাত ক্রিকেটার
বিসিবির বিশ্বকাপ আয়োজনে প্রধানমন্ত্রীর সমর্থন
রমিজ রাজার প্রস্তাবে সাড়া দেয়নি বিসিবি
চিরনিদ্রায় জালাল চৌধুরী
নেপালে খেলার এনওসি পেলেন তামিম

শেয়ার করুন