মিরপুরের উইকেটে কৌশল বদলাতে হচ্ছে ব্যাটসম্যানদের

মিরপুরের উইকেটে কৌশল বদলাতে হচ্ছে ব্যাটসম্যানদের

অনুশীলনে লিটন দাস। ফাইল ছবি

প্রেসিডেন্টস কাপ থেকে শুরু করে আন্তর্জাতিক ম্যাচে ভেন্যু হিসেবে ব্যবহার করা হচ্ছে শেরে বাংলাকে। চারটি উইকেটের ভেতর টেস্টের জন্য সংরক্ষিত একটি উইকেট বাদে বাকি সবগুলো উইকেটে লম্বা সময় খেলা হচ্ছে বিরতিহীনভাবে।

শেরে বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামের উইকেট লম্বা সময় ধরে ভোগাচ্ছে ব্যাটসম্যানদের। স্বাগতিক ক্রিকেটাররা তো বটেই, ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে অতিথিদেরও।

মিরপুরের সেন্ট্রাল উইকেটে আগে ব্যাটিং করা দল পায় সুবিধা। রান তাড়া করে এই পিচে জয় পেতে বেগ পেতে হয়েছে ব্যাটসম্যানদের। অস্ট্রেলিয়া ও চলতি নিউজিল্যান্ড সিরিজের পরিসংখ্যান তেমনটাই বলছে।

বিসিবি প্রেসিডেন্টস কাপ থেকে শুরু করার পর ডিপিএল ও আন্তর্জাতিক ম্যাচে ভেন্যু হিসেবে ব্যবহার করা হচ্ছে শেরে বাংলাকে। চারটি উইকেটের ভেতর টেস্টের জন্য সংরক্ষিত একটি উইকেট বাদে বাকি সবগুলো উইকেটে লম্বা সময় খেলা হচ্ছে বিরতিহীনভাবে। ফলে কিউইরেটররা পরিচর্যা করার সময় পাচ্ছেন না।

এ কারণে প্রায় সময় ব্যাটসম্যানদের জন্য কঠিন হয়ে যাচ্ছে মিরপুরের ২২ গজ। টি-টোয়েন্টিতে দুটি ম্যাচে ১০০ রানের নিচে আটকা পড়েছে স্বাগতিক ও সফরকারী দল।

শুধু তাই নয়, শেষ ৮ ম্যাচের দুটিতে ১৩০ এর ওপর পুঁজি এসেছে শেরে বাংলার উইকেট থেকে। বাকি ম্যাচে ব্যাটসম্যানদের শেরে বাংলার স্লো উইকেট থামিয়ে দিয়েছে ১২০ এর ঘরে।

এ ধরণের কন্ডিশনে ব্যাটসম্যানদের ব্যাটিং করাটা চ্যালেঞ্জিং বলে মানছেন বাংলাদেশ জাতীয় দলের ওপেনার লিটন দাস। একই সঙ্গে তিনি মনে করেন উইকেটের কারণে ব্যাটিংয়ের কৌশল পাল্টাতে হচ্ছে স্ট্রোক প্লেয়ারদের।

লিটন বলেন, ‘ব্যাটিং কন্ডিশনটা অবশ্যই চ্যালেঞ্জিং। গত তিনটা ম্যাচ লো স্কোরিং হয়েছে। ব্যাটসম্যানরা ভোগান্তি পোহাচ্ছে। টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে সবারই আশা থাকে যে বড় স্কোর করা বা স্ট্রাইক রেট ধরে রাখা। যেহেতু সেটা হচ্ছে না তাই খেলা পাল্টে ফেলতে হচ্ছে। এটা খুব কঠিন। এই ফরম্যাটে সব ব্যাটসম্যান আক্রমণাত্মক মনোভাবে থাকে। আমার মনে হয় এখানে সিঙ্গেলসে বেশি ফোকাস দিতে হবে। রানিং বিটুইন দ্য উইকেটও ভালো করতে হবে।’

অস্ট্রেলিয়া সিরিজের পর নিউজিল্যান্ড সিরিজে বায়ো বাবলে প্রবেশের আগে মাত্র ১৪ দিন সময় পান স্বাগতিক ক্রিকেটাররা। চলতি সিরিজটিও হচ্ছে এক দিনের বিরতি দিয়ে। টানা খেলার কারণে ক্রিকেটারদের ফিটনেস ধরে রাখতে বেশ বেগ পেতে হচ্ছে বলে মনে করেন এই হার্ডহিটার।

একই সঙ্গে গরম আবহাওয়ার কারণে বাড়তি সতর্ক থাকতে হচ্ছে বলে জানান এই উইকেটকিপার ব্যাটসম্যান।

লিটন বলেন, ‘যেখানে খেলছি এখানে প্রচন্ড গরম আবহাওয়া, নিজেকে সেভাবে মেইনটেইন করতে হচ্ছে। কারণ একদিন পরপর খেলা গরমে। একদিন পর পর খেলা হলে ব্রেক গুরুত্বপূর্ণ। শরীরের বিশ্রাম খুব দরকার। কারণ এরকম গরমে পরপর অনুশীলন ও ম্যাচ থাকলে এনার্জি লেভেল ডাউন হয়ে যায়। এ জন্য আমরা সবাই ফিটনেসে অনেক মনোযোগ দিচ্ছি। জিম করছি। কারণ স্ট্রেংথ অনেক বেশি দরকার।’

আরও পড়ুন:
মুমিনুলের নেতৃত্বে এইচপির বিপক্ষে এ-দলের শক্তিশালী স্কোয়াড
কেমন হবে টাইগারদের বিশ্বকাপ দল?
দ্য ফিজের জন্মদিন আজ
ব্যাটিংয়ে সমস্যা দেখছেন না ডমিঙ্গো
টি-টোয়েন্টিতে কিপিং করতে চান না মুশফিক

শেয়ার করুন

মন্তব্য

এ-দলের হয়ে ব্যাট হাসল মিঠুনের

এ-দলের হয়ে ব্যাট হাসল মিঠুনের

সেঞ্চুরির পর মোহাম্মদ মিঠুন। ছবি: বিসিবি

চট্টগ্রামে হাই পারফরম্যান্স দলের বিপক্ষে ম্যাচের চতুর্থ দিনে দুর্দান্ত এক শতকের দেখা পান মিঠুন।

দুঃসময় যেন কাটছিল না মোহাম্মদ মিঠুনের। অফ ফর্মের খাতা থেকে নিজের নামটা কাটাতে পারছিলেন না এই ব্যাটসম্যান। বিসিবির চুক্তি থেকে বাদ পড়ার পর বিশ্বকাপ স্কোয়াড থেকে নাম কাটা পড়ে তার।

অবশেষে অফ ফর্ম কাটিয়ে তার প্রাপ্তির খাতায় যোগ হল দুর্দান্ত এক অর্জন। লম্বা সময় পর পেলেন সেঞ্চুরির দেখা। চট্টগ্রামে হাই পারফরম্যান্স ইউনিটের বিপক্ষে ম্যাচের চতুর্থ দিনে দুর্দান্ত এক শতকের দেখা পান মিঠুন।

মিঠুনের অনন্য প্রাপ্তির দিনে জয়ের দেখা পায়নি তার দল। ড্র নিয়ে মাঠ ছাড়তে হয়েছে তাদের।

শনিবার ৪৬ রান নিয়ে দিন শুরু করে মিঠুন অর্ধশতকের দেখা পান ১২৬ বল খেলে। তার সঙ্গে দেখশুনে ব্যাট করছিলেন ইয়াসির রাব্বি। পেসার মুকিদুল ইসলামের লেংথ বল পুল করতে গিয়ে লাইন মিস করে ইয়াসির বোল্ড হলে ভাঙ্গে জুটি। সেঞ্চুরি থেকে ১৪ রান দূরে থাকতে থামে রাব্বির ব্যাট।

এরপর ইরফান শুক্কুরকে সঙ্গে নিয়ে রানের চাকা সচল রাখেন মিঠুন। তানভিরকে ডাউন দ্য উইকেটে এসে খেলতে গিয়ে ৩৭ রানেই থামেন শুক্কুর।

অপরপ্রান্তের ব্যাটসম্যানরা থামলেও এইচপির বোলাররা থামাতে পারছিলেন না মিঠুনকে। ২০৬ বল খেলে সেঞ্চুরি করে মাঠ ছাড়েন তিনি। এরপর ইনিংস ঘোষণা করে এ-দল।

এইচপির লক্ষ্য দাঁড়ায় ৩৬৬ রানের। জয়ের জন্য তাদের এই লক্ষ্য টপকাতে হত ৫৮ ওভারে।

ব্যাট করতে নেমে খুব একটা সুবিধা করতে পারেনি এইচপি দলের ব্যাটসম্যানরা। দলীয় ৯ রানেই হারিয়ে বসে ওপেনার তানজিদ হোসেন তামিমের উইকেট।

উইকেটে থিতু হওয়ার আগে পারভেজ হোসেন ইমন ও মাহমুদুল হাসান ফেরেন। শেষতক বেশিদূর আর যাওয়া হয়নি এইচপির। ৩ উইকেটের খরচায় ১৪৮ রানে থামতে হয় তাদের।

দল জয় না পেলেও নিজের পারফরম্যান্সে বেশ উচ্ছ্বাসিত মোহাম্মদ মিঠুন। ম্যাচ শেষে দেয়া তার মন্তব্যে সেটি স্পষ্ট ছিল।

মিঠুন বলেন, ‘এখানে আসার যে উদ্দেশ্য ছিল, ম্যাচ অনুশীলন সেটা এখন পর্যন্ত খুবই ভালো হয়েছে। এখানকার সুযোগ-সুবিধা ভালো ছিল। চট্টগ্রামের উইকেট তো সবসময় ভালো থাকে।’

তিনি যোগ করেন, ‘সবকিছু মিলিয়ে, ব্যক্তিগতভাবে খুব ভালো হয়েছে। আমার ম্যাচগুলি দরকার ছিল। সবশেষ কিছুদিন খুব একটা ভালো যাচ্ছিল না। এখানে রান করতে পেরেছি। ব্যক্তিগতভাবে মনে করি, এটা আমাকে সহায়তা করবে।’

আরও পড়ুন:
মুমিনুলের নেতৃত্বে এইচপির বিপক্ষে এ-দলের শক্তিশালী স্কোয়াড
কেমন হবে টাইগারদের বিশ্বকাপ দল?
দ্য ফিজের জন্মদিন আজ
ব্যাটিংয়ে সমস্যা দেখছেন না ডমিঙ্গো
টি-টোয়েন্টিতে কিপিং করতে চান না মুশফিক

শেয়ার করুন

আফগানদের কাছে হারল বিশ্বজয়ী যুবারা

আফগানদের কাছে হারল বিশ্বজয়ী যুবারা

বাংলাদেশ-আফগানিস্তান অনূর্ধ্ব-১৯ দলের ম্যাচের একটি দৃশ্য। ছবি: সংগৃহীত

আফগান যুবাদের বিপক্ষে ব্যাটিং ব্যর্থতার কারণে ৩ উইকেটে হেরেছে স্বাগতিকরা।

আফগানিস্তানের বিপক্ষে একমাত্র আন অফিসিয়াল চার দিনের ম্যাচে জয়ের আশা জাগিয়েও হার নিয়েই মাঠ ছাড়তে হয়েছে বাংলাদেশের যুবাদের। আফগান যুবাদের বিপক্ষে ব্যাটিং ব্যর্থতার কারণে ৩ উইকেটে হেরেছে স্বাগতিকরা।

৫১ রানের লিড নিয়ে চতুর্থ দিন শুরু করা বাংলাদেশ গুটিয়ে যায় দিনের প্রথম সেশনেই। ৪ উইকেটে ১৭০ রান নিয়ে দিন শুরু করে ২২৮ রানেই গুটিয়ে যায় স্বাগতিকরা। আর তার সুবাদে জয়ের জন্য ১১০ রানের লক্ষ্য দাঁড়ায় সফরকারীদের সামনে।

জবাবে ব্যাট করতে নেমে স্কোরশিটে ২ রান তুলতেই ওপেনার সুলাইমান শাফিকে হারায় সফরকারী দল। এরপর নিয়মিত বিরতিতে পতন হতে থাকে আফগানিস্তানের উইকেট। কিন্তু প্রথম ইনিংসের মতো দ্বিতীয় ইনিংসেও ঢাল হয়ে দাঁড়ান সাঈদি। দলকে টেনে নিয়ে যেতে থাকেন জয়ের দ্বারপ্রান্তে।

১০৮ বলে ৫৪ রান করে যখন তিনি মাঠ ছাড়েন সে সময় দলের স্কোর ১০৬ রান। বাকি কাজটা সারেন কামরান ও নানগেলিয়া খারাটে মিলে। দলকে এনে দেন তিন উইকেটের দুর্দান্ত এক জয়।

বাংলাদেশের পক্ষে ২টি করে উইকেট নেন আইচ, রিপন মন্ডল ও মুশফিক হাসান। একটি উইকেট পান প্রান্তিক।

আরও পড়ুন:
মুমিনুলের নেতৃত্বে এইচপির বিপক্ষে এ-দলের শক্তিশালী স্কোয়াড
কেমন হবে টাইগারদের বিশ্বকাপ দল?
দ্য ফিজের জন্মদিন আজ
ব্যাটিংয়ে সমস্যা দেখছেন না ডমিঙ্গো
টি-টোয়েন্টিতে কিপিং করতে চান না মুশফিক

শেয়ার করুন

মনোনয়নপত্র কিনলেন পাপন

মনোনয়নপত্র কিনলেন পাপন

মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করছেন নাজমুল হাসান পাপন। ছবি: সংগৃহীত

২০১২ সালে প্রথমে সরকার মনোনীত সভাপতি ছিলেন নাজমুল হাসান পাপন। এরপর ২০১৩ ও ২০১৭ সালে দুই মেয়াদে নির্বাচিত সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন তিনি।

৬ অক্টোবর হতে যাচ্ছে বহুল প্রতীক্ষিত বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) নির্বাচন। এই নির্বাচন সামনে রেখে শুক্রবার থেকে শুরু হয়েছে প্রার্থীদের মনোনয়নপত্র বিতরণ।

শনিবার মনোনয়নপত্র কেনার শেষ দিন। এদিন মনোনয়নপত্র কিনলেন বর্তমান বোর্ড সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন।

বেলা ২টায় বোর্ড কার্যালয়ে ক্যাটাগরি ২ থেকে বোর্ড পরিচালক পদের জন্য নির্বাচন করতে মনোনয়নপত্র কেনেন তিনি।

এই ক্যাটাগরিতে ভোট দেবেন ঢাকার বিভিন্ন স্তরের ক্লাবের ৫৬ কাউন্সিলর। তাদের ভোটে ১২ জন নির্বাচিত হবেন পরিচালক পদে।

পাপন বলেন, 'আমি খুবই খুশি। কাল টিভিতে দেখেছি। দেখলাম অনেক নতুন মুখ আছে। এখানে এসে বেশ কিছু নতুন মুখ দেখেছি। এটা দেখে আমি অনেক খুশি। এটাই আমি চাচ্ছি যে নির্বাচন হোক। নতুন নতুন মানুষ আসুক।'

২০১২ সালে প্রথম সরকার মনোনীত সভাপতি ছিলেন নাজমুল হাসান পাপন। এরপর ২০১৩ ও ২০১৭ সালে দুই মেয়াদে নির্বাচিত সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন তিনি।

৬ অক্টোবর সকাল ১০টা থেকে শুরু হবে বিসিবি নির্বাচনে ভোটগ্রহণ। চলবে বিকেল ৫টা পর্যন্ত। পর দিন ঘোষণা হবে নির্বাচনের ফল।

আরও পড়ুন:
মুমিনুলের নেতৃত্বে এইচপির বিপক্ষে এ-দলের শক্তিশালী স্কোয়াড
কেমন হবে টাইগারদের বিশ্বকাপ দল?
দ্য ফিজের জন্মদিন আজ
ব্যাটিংয়ে সমস্যা দেখছেন না ডমিঙ্গো
টি-টোয়েন্টিতে কিপিং করতে চান না মুশফিক

শেয়ার করুন

বিসিবির নির্বাচনে লড়বেন সাকিব-তামিমদের গুরু

বিসিবির নির্বাচনে লড়বেন সাকিব-তামিমদের গুরু

মনোনয়ন পত্র কিনে বের হচ্ছেন নাজমুল আবেদীন ফাহিম। ছবি: সংগৃহীত

শনিবার মনোনয়নপত্র কেনার শেষ দিনে ক্যাটাগরি-৩-এর বাংলাদেশ ক্রীড়া শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের (বিকেএসপি) হয়ে মনোনয়নপত্র কিনলেন নাজমুল আবেদীন ফাহিম। আসন্ন বোর্ড নির্বাচনে এবারে খালেদ মাহমুদ সুজনের বিপক্ষে লড়তে যাচ্ছেন সাকিব-তামিমদের গুরু।

বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) পরিচালনা পর্ষদের নির্বাচন ৬ অক্টোবর। যত দিন গড়াচ্ছে, উত্তাপ বাড়ছে নির্বাচনের। আর এই উত্তাপ আরও বাড়িয়ে দিতেই যেন সবাইকে চমকে দিয়ে মনোনয়নপত্র কিনলেন সাকিব-তামিমদের গুরু নাজমুল আবেদীন ফাহিম।

শনিবার মনোনয়নপত্র কেনার শেষ দিনে ক্যাটাগরি-৩-এর বাংলাদেশ ক্রীড়া শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের (বিকেএসপি) হয়ে মনোনয়নপত্র কিনলেন কিংবদন্তি এই কোচ। বর্তমানে তিনি বিকেএসপির ক্রিকেট উপদেষ্টা হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন তিনি।

মনোনয়নপত্র কিনে ফাহিম সাংবাদিকদের জানান, এবার পরিবর্তন এসেছে তার চিন্তায়। পলিসি লেভেলে কাজ করা জরুরি এবং সেই কাজ করতেই নির্বাচনে অংশ নিচ্ছেন বলে জানিয়েছেন তিনি।

‘আমি অনুধাবন করেছি যে, আমি বা আমাদের মতো যারা আছে তাদের বোধহয় পলিসি লেভেল থাকা উচিত। আমরা সত্যিকার ছবিটা তুলে ধরতে পারব পলিসি লেভেলে। আর সত্যিকার যে পরিবর্তনগুলো দরকার সেগুলো আনার চেষ্টা করব’, বলেন ফাহিম।

বিসিবির নির্বাচনে এর আগেও দুইবার কাউন্সিলর হিসেবে ছিলেন ফাহিম। তবে দুবারই অন্য কারও জন্য জায়গা ছেড়ে দিতে হয়েছে বলেই করা হয়নি তার নির্বাচন।

তবে আসন্ন বোর্ড নির্বাচনে এবারে খালেদ মাহমুদ সুজনের বিপক্ষে লড়তে যাচ্ছেন ফাহিম। বিষয়টি সুজনের সঙ্গে সাংঘর্ষিক হবে না বলেও জানান তিনি।

অভিজ্ঞ এই ক্রিকেট বিশ্লেষক বলেন, ‘সত্যি বলতে আমি এর আগেও দুইবার কাউন্সিলর ছিলাম, বিসিবিতে আসার আগে, যখন বিকেএসপিতে ছিলাম। আগেও সুযোগ হয়েছিল (নির্বাচন করার), তবে আরেকজনের জন্য সেক্রিফাইজ করেছিলাম জায়গাটা। আমার মনে হয়, এত দিন কাজ করার পর আমার ভালো ধারণা আছে বাংলাদেশের ক্রিকেটের জন্য কী করা দরকার। সেটাতে দৃষ্টি রেখেই আমি মিড লেভেলে কিছু কাজ করার চেষ্টা করেছি।’

তিনি আরও বলেন, ‘এটা তো আসলে টক্কর না, এটা ভালো জিনিস যে আমরা যারা অংশ নিচ্ছি, তারা সবাই যোগ্য। আমার সঙ্গে সুজনের দেখা হয়েছে এবং তাকে আমি উইশ করেছি, সেও আমাকে উইশ করেছে। আমি আশা করি, একটা ভালো পরিবেশে নির্বাচনটা হবে। তার জন্য আমার শুভ কামনা থাকল। তার অবদান নিয়েও সন্দেহ নেই। অনেক বছর সে কাজ করছে।’

নির্বাচিত হলে কোন কোন জায়গা নিয়ে কাজ করবেন, সেটিও এ সময় সাংবাদিকদের জানান ঘরোয়া ক্রিকেটের অভিজ্ঞ এই কোচ।

তিনি বলেন, ‘আমার যেহেতু অনেক লেভেলে কাজ করার সুযোগ হয়েছে, আমি জানি...ক্রিকেটকে ছড়িয়ে দেয়া।’

দেশের বহু ক্রিকেটারের এই গুরু বলেন, ‘ইনফ্রাসট্রাকচার বলেন, সব বিষয়ে আমরা যতটুকু করতে পারতাম, আমার মনে হয় না ততটুকু করতে পেরেছি। আমি যদি সুযোগ পাই এ জায়গাগুলোতে কাজ করার চেষ্টা করব।’

আরও পড়ুন:
মুমিনুলের নেতৃত্বে এইচপির বিপক্ষে এ-দলের শক্তিশালী স্কোয়াড
কেমন হবে টাইগারদের বিশ্বকাপ দল?
দ্য ফিজের জন্মদিন আজ
ব্যাটিংয়ে সমস্যা দেখছেন না ডমিঙ্গো
টি-টোয়েন্টিতে কিপিং করতে চান না মুশফিক

শেয়ার করুন

এভারেস্ট লিগে সেরাটা দিতে চান তামিম

এভারেস্ট লিগে সেরাটা দিতে চান তামিম

কাঠমান্ডু বিমানবন্দরে তামিম। ছবি: সংগৃহীত

বাঁহাতি এই ব্যাটসম্যান বলেন, ‘আমি আগে কখনও নেপাল আসিনি। এখানে আসা নিয়ে বেশ রোমাঞ্চিত ছিলাম। ইপিএলে খেলার অপেক্ষায় আছি। আশা করছি, ভালো একটি টুর্নামেন্ট হবে। আমার দলের হয়ে ভালো পারফরম্যান্স করতে চাই।’

ফ্র্যাঞ্চাইজিভিত্তিক টি-টোয়েন্টি টুর্নামেন্ট এভারেস্ট প্রিমিয়ার লিগ (ইপিএল) খেলতে শুক্রবার রাতে নেপালে পৌঁছেছেন জাতীয় দলের ওপেনার তামিম ইকবাল। পৌঁছেই বলেছেন, হিমালয়ের পাদদেশে এই লিগে নিজের সেরাটা দিয়ে খেলবেন তিনি।

টুর্নামেন্টে ভাইরাহাওয়া গ্ল্যাডিয়েটর্সের হয়ে খেলবেন তামিম। ২৬ সেপ্টেম্বর পোখারা রাইনোসের বিপক্ষে প্রথম ম্যাচ খেলবে তার দল।

ইনজুরি থেকে ফিরেই শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে দিন দুয়েক অনুশীলন করে উড়াল দিয়েছেন নেপালে। সেখানে পৌঁছে ক্রিকেটিং নেপালকে সাক্ষাৎকার দিয়েছেন তামিম।

তিনি বলেন, ‘গত দুই-তিন মাস ইনজুরিতে ছিলাম। তবে গত দুই-তিন সপ্তাহ ধরে বেশ ভালো বোধ করছি। দেশে থাকতে অনুশীলন করেছি। আমি ভালোভাবে শুরু করতে আশাবাদী। মাঠে নামলে কী হবে সেটা এখনই বলতে পারছি না, তবে আমি আমার সেরাটা দেবো।’

বাঁহাতি এই ব্যাটসম্যান আরও বলেন, ‘আমি আগে কখনও নেপাল আসিনি। এখানে আসা নিয়ে বেশ রোমাঞ্চিত ছিলাম। ইপিএলে খেলার অপেক্ষায় আছি। আশা করছি, ভালো একটি টুর্নামেন্ট হবে। আমার দলের হয়ে ভালো পারফরম্যান্স করতে চাই।’

টুর্নামেন্টে ২৬ সেপ্টেম্বর পোখারা রাইনোসের বিপক্ষে প্রথম ম্যাচ খেলবে তামিমের গ্ল্যাডিয়েটর্স। এরপর ২৭ সেপ্টেম্বর চিতওয়ান টাইগার্স, ২৯ সেপ্টেম্বর বিরাটনগর ওয়ারিয়র্স, ২ অক্টোবর কাঠমান্ডু কিংস ইলেভেন ও ৪ অক্টোবর ললিতপুর প্যাট্রিয়টসের বিপক্ষে লড়বে তামিমের দল।

চলতি বছরের শুরুতে জিম্বাবুয়ে সিরিজের পর থেকে টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে আর দেখা যায়নি তামিম ইকবালকে। হাঁটুর ইনজুরির জন্য ক্রিকেটের শর্টার ফরম্যাট থেকে নিজেকে সরিয়ে রেখেছেন বাঁহাতি এই ওপেনার।

আরও পড়ুন:
মুমিনুলের নেতৃত্বে এইচপির বিপক্ষে এ-দলের শক্তিশালী স্কোয়াড
কেমন হবে টাইগারদের বিশ্বকাপ দল?
দ্য ফিজের জন্মদিন আজ
ব্যাটিংয়ে সমস্যা দেখছেন না ডমিঙ্গো
টি-টোয়েন্টিতে কিপিং করতে চান না মুশফিক

শেয়ার করুন

পাকিস্তান সফর বাতিলে ইসিবির ওপর চটেছেন জনসন

পাকিস্তান সফর বাতিলে ইসিবির ওপর চটেছেন জনসন

ইসিবির সমালোচনা করে বরিস জনসনের মুখপাত্র বলেন, ‘তারা আমাদের কাছে কোনো সিদ্ধান্ত জানতে চায়নি। আমরা এর সঙ্গে জড়িতও না। এই সিরিজটি বাতিলে পাকিস্তানের সঙ্গে ইংল্যান্ডের রাজনৈতিক সুসম্পর্ক ব্যাহত হবে।’

নিরাপত্তা ইস্যুতে সম্প্রতি নিউজিল্যান্ডের দেখাদেখি পাকিস্তান সিরিজ বাতিল করেছে ইংল্যান্ডও। ইংল্যান্ড অ্যান্ড ওয়েলস ক্রিকেট বোর্ডের (ইসিবি) এ সিদ্ধান্তে চটেছেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন।

১৬ বছর পর পাকিস্তান সফরে যাওয়ার কথা ছিল ইংল্যান্ডের। ইসিবি থেকে সিরিজ বাতিলের কারণ হিসেবে নিরাপত্তা ইস্যু না দেখালেও বলা হয়েছিল খেলোয়াড়দের মানসিক স্বাস্থ্যের কথা চিন্তা করে বাতিল করছে তাদের সিরিজটি।

বিষয়টি নিয়ে জনসন অবগত ছিলেন না বলে তার একজন মুখপাত্র স্থানীয় এক সংবাদমাধ্যমকে জানিয়েছেন।

তিনি বলেন, ‘আমরা কোনো ক্রিকেটারের কাছে এমনকি ইসিবির কাছেও কখনই জানতে চাইনি তারা সিরিজটি খেলবে কি না বা সিরিজটির জন্য প্রস্তুত আছে কি না। বিকেলে আমরা জানতে পেরেছিলাম যে সফরটি বাতিল করা হয়েছে।’

প্রধানমন্ত্রীর মুখপাত্র আরও বলেন, ‘তারা আমাদের কাছে কোনো সিদ্ধান্ত জানতে চায়নি। আমরা এর সঙ্গে জড়িতও না। এই সিরিজটি বাতিলে পাকিস্তানের সঙ্গে ইংল্যান্ডের রাজনৈতিক সুসম্পর্ক ব্যাহত হবে।’

পাকিস্তানের বিপক্ষে দুটি টি-টোয়েন্টি ম্যাচের সিরিজ খেলার কথা ছিল ইংল্যান্ডের। পুরুষ দলের পাশাপাশি বাতিল হয়েছে ইংল্যান্ডের নারী দলের পাকিস্তান সফরটিও।

আরও পড়ুন:
মুমিনুলের নেতৃত্বে এইচপির বিপক্ষে এ-দলের শক্তিশালী স্কোয়াড
কেমন হবে টাইগারদের বিশ্বকাপ দল?
দ্য ফিজের জন্মদিন আজ
ব্যাটিংয়ে সমস্যা দেখছেন না ডমিঙ্গো
টি-টোয়েন্টিতে কিপিং করতে চান না মুশফিক

শেয়ার করুন

রাব্বি-মিঠুনের ব্যাটে বড় লিড এ-দলের

রাব্বি-মিঠুনের ব্যাটে বড় লিড এ-দলের

ব্যাটিংয়ে মুমিনুল হক। ফাইল ছবি

তৃতীয় দিনে ২৫২ রানের লিড নিয়ে দিন শেষ করেছে বাংলাদেশ এ-দল। হাই পারফরম্যান্স ইউনিটের (এইচপি) করা ২৩৭ রানের জবাবে তৃতীয় দিন শেষে এ-দলের সংগ্রহ ৪ উইকেটের খরচায় ২৫৮ রান।

চট্টগ্রামে সিরিজের দ্বিতীয় চারদিনের ম্যাচের তৃতীয় দিনে ২৫২ রানের লিড নিয়ে দিন শেষ করেছে বাংলাদেশ এ-দল। হাই পারফরম্যান্স ইউনিটের (এইচপি) করা ২৩৭ রানের জবাবে তৃতীয় দিন শেষে এ-দলের সংগ্রহ ৪ উইকেটের খরচায় ২৫৮ রান।

২৩৭ রান করে দ্বিতীয় দিন শুরু করা এইচপি দিনের শুরুতেই স্কোরবোর্ডে রান যোগ না করেই অলআউট হয়ে যায়। ফলে ৬ রানে পিছিয়ে থেকে দ্বিতীয় ইনিংস শুরু করে এ-দল।

ব্যাটিংয়ে নেমে দলীয় ৩১ রানে ওপেনার সাইফ হাসানকে হারায় এ-দল। দ্রুত উইকেট পতনে ব্যাকফুটে চলে যাওয়া দলকে এগিয়ে নেয়ার গুরুভার কাঁধে তুলে নেন সাদমান ইসলাম এবং নাজমুল শান্ত। গড়েন ৭৫ রানের জুটি।

তানভীর ইসলামের বলে শান্ত এলবিডব্লিউয়ের ফাঁদে পড়ায় ভাঙ্গে সেই জুটি। ৪৭ রান আসে তার ব্যাট থেকে।

তানভীরের বলে মেজাজ হারিয়ে শট খেলতে গিয়ে মাঠ ছাড়েন সাদমানও। জাতীয় দলের ওপেনার আউট হন ৪৯ রান করে।

চা বিরতির আগ মুহূর্তে নিজের উইকেট বিলিয়ে দিয়ে আসেন মুমিনুল ইসলাম। মাঠ ছাড়ার আগে খেলেন ৩০ রানের ইনিংস।

এরপর রাব্বি আর মিঠুনের ১০৩ রানের অবিচ্ছেদ্য জুটির সঙ্গে সঙ্গে বড় লিড নিয়ে তৃতীয় দিন শেষ করে এ-দল। মিঠুন অপরাজিত থাকেন ৪৬ রানে আর ইয়াসির রাব্বি ৬৫।

এইচপিএ হয়ে তানভীর ও মুকিদুল ইসলাম একটি করে উইকেট নেন।

প্রথম ইনিংসে ২৩১ রানে অলআউট হয় এ-দল।

আরও পড়ুন:
মুমিনুলের নেতৃত্বে এইচপির বিপক্ষে এ-দলের শক্তিশালী স্কোয়াড
কেমন হবে টাইগারদের বিশ্বকাপ দল?
দ্য ফিজের জন্মদিন আজ
ব্যাটিংয়ে সমস্যা দেখছেন না ডমিঙ্গো
টি-টোয়েন্টিতে কিপিং করতে চান না মুশফিক

শেয়ার করুন