ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা ম্যাচ পণ্ড: সিদ্ধান্ত নেবে ফিফা

ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা ম্যাচ পণ্ড: সিদ্ধান্ত নেবে ফিফা

আনভিসা প্রতিনিধির সঙ্গে আলোচনা করছেন লিওনেল মেসি। ছবি: টুইটার

কনমেবোল জানিয়েছে, এই ম্যাচের রিপোর্ট তারা পাঠাবে ফিফার কাছে। ফিফার কমিটি যে সিদ্ধান্ত নেয়, সেই অনুযায়ী পদক্ষেপ নেয়া হবে। যেহেতু বিশ্বকাপ বাছাইপর্ব ফিফার প্রতিযোগিতা, তাই এই সংক্রান্ত সব সিদ্ধান্ত ফিফাই নেবে।

বিশ্বের অন্যতম বড় ফুটবল ম্যাচ। সর্বকালের সেরা খেলোয়াড় ও বিশ্বের অন্যতম জনপ্রিয় খেলোয়াড় মুখোমুখি। বিশ্বকাপ বাছাইপর্বের তিন পয়েন্টের লড়াই। সব মিলিয়ে আবহটা ছিল জমজমাট এক ফুটবল ম্যাচের।

মাঠে খুব বেশি দর্শক উপস্থিত থাকার অনুমতি না দিলেও বিশ্বজুড়ে প্রায় শতকোটি ভক্ত চোখ রাখেন টিভি পর্দায়। ম্যাচের বদলে তারা যা দেখলেন সেটাকে ‘লঙ্কাকাণ্ড’ বললে খুব একটা বাড়াবাড়ি হবে না।

ব্রাজিলের হেলথ রেগুলেটরি এজেন্সির (আনভিসা) চার প্রতিনিধি ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা ম্যাচ চলার সময়ই স্টেডিয়ামে প্রবেশ করেন। ও সাইডলাইন থেকে রেফারিকে ম্যাচ থামাতে বলেন।

তাদের উদ্দেশ্য, মাঠের বাইরে নিয়ে যাবেন আর্জেন্টিনার চার খেলোয়াড় এমিলিয়ানো মার্তিনেস, এমিলিয়ানো বুয়েন্দিয়া, ক্রিস্টিয়ান রোমেরো ও জিওভানি লো সেলসোকে। আনভিসার দাবি মতে, এই চার তারকা তাদের জানাননি যে ব্রাজিলে আসার ১৪ দিন আগে তারা ইংল্যান্ডে ছিলেন।

ব্যাস! শুরু হয়ে গেল তুলকালাম। কিছুক্ষণ বাগ্‌বিতণ্ডা করার পর লিওনেল মেসি ও নেইমার দলবল নিয়ে ফিরে গেলেন ড্রেসিংরুমে। বিশ্বের সবচেয়ে আকর্ষণীয় ফুটবল ম্যাচ পণ্ড হলো আট মিনিটের মাথায়।

প্রশ্ন হচ্ছে এই পুরো বিশৃঙ্খলায় দায় কার?

আর্জেন্টিনা ফুটবল অ্যাসোসিয়েশনের প্রধান ক্লদিও তাপিয়া ম্যাচ শেষে পরিষ্কার ভাবেই বলেছেন, তাদের খেলোয়াড়রা কোনো আইন ভঙ্গ করেননি। ব্রাজিলের প্রতিটি কোভিড প্রটোকল মেনেই তারা দেশটিতে খেলতে গিয়েছেন।

এত বড় ম্যাচের জন্য দায়ী কর্তৃপক্ষ তিনটি; আর্জেন্টিনা ফুটবল অ্যাসোসিয়েশন (এএফএ), ব্রাজিল ফুটবল ফেডারেশন (সিবিএফ) ও দক্ষিণ আমেরিকান ফুটবল কনফেডারেশন (কনমেবোল)।

এই তিন সংস্থার অনুমতি, পর্যালোচনা ও নিশ্চয়তার সাপেক্ষেই খেলোয়াড়রা নামেন মাঠে।

ব্রাজিল ও আর্জেন্টিনার খেলোয়াড়রা তার নিজ নিজ দেশের বোর্ড ও কনমেবোলের নিয়ম ও শর্ত মেনেই প্রতিটি ম্যাচ খেলতে নামেন।

ব্রাজিলের স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের একটি উইং আনভিসার সঙ্গে কোভিড প্রটোকল নিয়ে পরিষ্কার কথা বলা ও শর্ত জেনে খেলোয়াড়দের জানানোর দায়িত্ব শুরুতে সিবিএফ, তারপর কনমেবোল ও এএফএর।

যদি ওই চার খেলোয়াড় ব্রাজিলে খেলার জন্য উপযুক্ত না হন, তাহলে সেটা সিবিএফ যাচাই করে জানাবেন কনমেবোলকে। কনমেবোল অবহিত করবে এএফএকে। এএফএ সিদ্ধান্ত নেবে তাদের কোন খেলোয়াড় মাঠে নামাবে কি নামাবে না।

গত রাতে সাও পাওলোর মাঠে যে দৃশ্যের অবতারণা হয়েছে সেটাতে এখনও নিশ্চিত নয় গাফিলতি বা গলদ কোন পক্ষ থেকে হয়েছে, কিন্তু ধারণা করা হচ্ছে সিবিএফ ও আনভিসার যোগাযোগের ব্যর্থতার ফসল এই ম্যাচ বানচাল হওয়া।

ব্রাজিলের ফুটবলের সর্বোচ্চ সংস্থা হিসেবে সিবিএফের নিজ দেশের কোভিড প্রটোকল অতিথি দলকে জানানোর কথা এবং সেগুলো নিশ্চিতে আহ্বান জানানোর কথা।

অন্যদিকে, ব্রাজিলের ফুটবলে মাঠে দর্শক ফেরাতে মুখিয়ে আছে সিবিএফ। কিন্তু ব্রাজিলের স্বাস্থ্য অধিদপ্তর চলমান করোনাভাইরাস পরিস্থিতিতে সেই অনুমতি দিতে নারাজ। ফলে দুই ব্রাজিলিয়ান সংস্থার মধ্যেও বিরোধের সম্ভাবনা উড়িয়ে দেয়া যাচ্ছে না।

বিশেষ করে ম্যাচ শুরুর পর আনভিসার প্রতিনিধি দলের মাঠে প্রবেশ করে চার অভিযুক্ত খেলোয়াড়কে সরিয়ে নিতে আসাটা জন্ম দিয়েছে সবচেয়ে বড় প্রশ্নের। আর্জেন্টিনার অধিনায়ক লিওনেল মেসি জানতে চেয়েছেন, তারা তিনদিন ধরে ব্রাজিলে। তাহলে অনিয়মের অভিযোগ আগে কেনো জানানো হলো না!

কনমেবোল জানিয়েছে, এই ম্যাচের রিপোর্ট তারা পাঠাবে ফিফার কাছে। ফিফার কমিটি যে সিদ্ধান্ত নেয় সেই অনুযায়ী পদক্ষেপ নেয়া হবে। যেহেতু বিশ্বকাপ বাছাইপর্ব ফিফার প্রতিযোগিতা, তাই এ-সংক্রান্ত সব সিদ্ধান্ত ফিফাই নেবে।

এক বিবৃতিতে কনমেবোল জানায়, ‘রেফারি ও ম্যাচ কমিশনার ফিফা ডিসিপ্লিনারি কমিটির কাছে এই ম্যাচের রিপোর্ট জমা দেবেন। সেটা পর্যালোচনা করে ফিফা জানাবে কী পদক্ষেপ নেয়া হবে। এই প্রক্রিয়ায় বর্তমান নিয়ম অবলম্বন করা হবে। বিশ্বকাপ বাছাইপর্ব ফিফার একটি প্রতিযোগিতা। এ-সংক্রান্ত সব সিদ্ধান্ত নেওয়ার ক্ষমতা শুধু ওই সংস্থার আছে।’

আরও পড়ুন:
‘ম্যাচ শুরুর পর কেন খোঁজা হলো?’ প্রশ্ন মেসির
কোভিড জটিলতায় স্থগিত ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা ম্যাচ
কোপা ফাইনালের পর আবার মুখোমুখি ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা

শেয়ার করুন

মন্তব্য

দুই সপ্তাহ বাইরে থাকতে হতে পারে মেসিকে

দুই সপ্তাহ বাইরে থাকতে হতে পারে মেসিকে

পিএসজির জার্সিতে লিওনেল মেসি। ফাইল ছবি

যেটাকে মনে হচ্ছিল সাধারণ চোট, এখন সেটাকে পিএসজি মেডিক্যাল টিম ভাবছে গুরুতর। তাদের পরামর্শ মেসিকে অন্তত ১০ দিন বিশ্রামে রাখা। তেমনটা হলে পিএসজির হয়ে অন্তত দুটি ম্যাচ খেলতে পারবেন না মেসি।

অলিম্পিক লিঁওর বিপক্ষে দারুণ খেলতে থাকা লিওনেল মেসিকে ৭৫ মিনিটে বদলি হিসেবে উঠিয়ে নিয়ে তোপের মুখে পড়েন প্যারিস সেইন্ট জার্মেই (পিএসজি) ম্যানেজার মরিসিও পচেত্তিনো।

ম্যাচের শেষে পিএসজি মেডিক্যাল টিম জানায়, বাম হাঁটুতে চোট পেয়েছেন বিশ্বসেরা ফুটবলার।

যার কারণে গত বুধবার রাতে ফ্রেঞ্চ লিগে মেসের বিপক্ষে ম্যাচটিতে ছিলেন না মেসি। পিএসজির জন্য শঙ্কার খবর হচ্ছে, মেসিকে মাঠের বাইরে থাকতে হতে পারে আরও ১০-১৪ দিন।

তেমনটা হলে সামনের সপ্তাহে ইউয়েফা চ্যাম্পিয়নস লিগে ম্যানচেস্টার সিটির বিপক্ষে ম্যাচে খেলতে পারবেন না ছয়বারের ব্যালন ডর জয়ী।

ফুটবল দর্শকদের দেখা হবে না পেপ গার্দিওলা বনাম লিওনেল মেসির দ্বৈরথ।

স্পেনের চিকিৎসাবিষয়ক পত্রিকা মেহোর কন সালুদ এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে, আর্জেন্টিনার হয়ে বিশ্বকাপ বাছাইপর্বে খেলার সময় ব্যথা পেয়েছিলেন মেসি।

ভেনিজুয়েলের বিপক্ষে হাঁটুর পেশিতে চোট পাওয়ার পরও সেটা নিয়ে পরে বলিভিয়ার বিপক্ষে খেলে হ্যাটট্রিক করেন আর্জেন্টাইন অধিনায়ক।

পরের সপ্তাহে ওই অবস্থায় নামেন পিএসজির হয়ে। কিন্তু এতটা চাপ সহ্য করতে পারেনি তার ৩৪ বছরের শরীর।

ফলে যেটাকে মনে হচ্ছিল সাধারণ চোট, এখন সেটাকে পিএসজি মেডিক্যাল টিম ভাবছে গুরুতর। তাদের পরামর্শ মেসিকে অন্তত ১০ দিন বিশ্রামে রাখা।

তেমনটা হলে পিএসজির হয়ে অন্তত দুটি ম্যাচ খেলতে পারবেন না মেসি।

রোববার ফ্রেঞ্চ লিগ ওয়ানের বড় ম্যাচে মঁপলিয়ের মুখোমুখি হবে পিএসজি। আর বুধবার রাতে খেলবে ম্যানচেস্টার সিটির বিপক্ষে।

গত আগস্টে বার্সেলোনা থেকে দুনিয়া কাঁপানো ট্র্যান্সফারে পিএসজিতে যোগ দেবার পর প্যারিসিয়ানদের হয়ে তিন ম্যাচ খেলেছেন মেসি। গোলের দেখা পাননি।

চোটের কারণে অবশ্য জাতীয় দলের হয়ে কোনো ম্যাচ হাতছাড়া হওয়ার শঙ্কা নেই আর্জেন্টিনা অধিনায়কের।

বিশ্বকাপ বাছাইপর্বে ১ অক্টোবর প্যারাগুয়ের বিপক্ষে নামছে আর্জেন্টিনা। তার আগেই সুস্থ হয়ে উঠবেন মেসি।

আরও পড়ুন:
‘ম্যাচ শুরুর পর কেন খোঁজা হলো?’ প্রশ্ন মেসির
কোভিড জটিলতায় স্থগিত ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা ম্যাচ
কোপা ফাইনালের পর আবার মুখোমুখি ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা

শেয়ার করুন

টানা তিন ম্যাচে জয়শূন্য বার্সেলোনা

টানা তিন ম্যাচে জয়শূন্য বার্সেলোনা

আক্রমণের চেষ্টায় বার্সেলোনা ফরোয়ার্ড মেম্ফিস ডিপায়। ছবি: টুইটার

লা লিগার ম্যাচে কাদিসের সঙ্গে গোলশূন্য ড্র করেছে রোনাল্ড কুমানের দল। এতে করে লিগ টেবিলের ৭ নম্বরে থাকল বার্সেলোনা। লিগ মৌসুমে পাঁচ ম্যাচে মাত্র দুই জয় সাবেক চ্যাম্পিয়নদের।

খারাপ সময়টা কাটছে না বার্সেলোনার। বিপর্যয়ের একটি মৌসুম কাটানোর ইঙ্গিত দিচ্ছে কাতালান জায়ান্টরা। লা লিগার ম্যাচে কাদিসের সঙ্গে গোলশূন্য ড্র করেছে রোনাল্ড কুমানের দল।

এতে করে লিগ টেবিলের ৭ নম্বরে থাকল বার্সেলোনা। লিগ মৌসুমে পাঁচ ম্যাচে মাত্র দুই জয় সাবেক চ্যাম্পিয়নদের।

কাদিসের মাঠে প্রথমার্ধে একবারে সাদামাটা ফুটবল উপহার দেয় দুই দল। স্বাগতিক কাদিস কিংবা বার্সেলোনা কোনো দলের পক্ষ থেকে গোলে কোনো শট ছিল না প্রথম ৪৫ মিনিট।

সুযোগও তৈরি করতে পারেনি কেউ।

খেলার গতি পরিবর্তন হয় দ্বিতীয়ার্ধে। ম্যাচের ৬৫ মিনিটে কাদিসের ডিফেন্ডার আলফোনসো এসপিনোকে জোড়া পায়ে ট্যাকল করে লাল কার্ড দেখেন বার্সেলোনার মিডফিল্ডার ফ্র্যাংকি ডি ইয়ং।

১০ জনের প্রতিপক্ষের ওপর চড়াও হয়ে খেলা শুরু করে কাদিস। আক্রমণ রচনা করলেও গোলের দেখা পায়নি তারা।

মূলত বার্সা গোলকিপার মার্ক-আন্ড্রে টের স্টেগেনের রক্ষণ ভাগ ভাঙতে ব্যর্থ হয় স্বাগতিক দল।

ম্যাচের ইনজুরি টাইমে আরেকটি লাল কার্ড দেখে বার্সেলোনা। এবারে কোনো খেলোয়াড় নন, ডাগ আউটে থাকা বার্সেলোনা কোচ রোনাল্ড কুমানকে লাল কার্ড দেখান রেফারি।

সার্হি রবের্তোকে হলুদ কার্ড দেখানোর প্রতিবাদ করেন বার্সা বস। আর তাতেই পেতে হয় শাস্তি।

নির্ধারিত ৯০ মিনিট ও ইনজুরি টাইমের সাত মিনিট, সব মিলিয়ে ৯৭ মিনিট গোলের দেখা না পেয়েই মাঠ ছাড়ে দুই দল।

ম্যাচ শেষে রেফারির ওপর ক্ষোভ ঝাড়েন কুমান। বার্সা টিভিকে প্রতিক্রিয়ায় বলেন, ‘তারা স্নায়ুচাপে পড়ে আমাকে লাল কার্ড দেখায়নি। আমি তাদের বলেছি যে সেকেন্ড বল হয়েছে ও এখন সময় থামাতে হবে, এ জন্য আমাকে বের করে দিয়েছে। এই দেশে কোনো কিছু না করেই লাল কার্ড দেখতে হয়।'

বার্সেলোনা মিডফিল্ডার সার্হি রবের্তো ম্যাচ শেষে স্বীকার করেননি যে দল বিপর্যয়ের মধ্য দিয়ে যাচ্ছে। তাদের লক্ষ্য এখনও লিগ শিরোপা জেতা- এমনটা মনে করিয়ে দেন তিনি।

টিভি চ্যানেল মুভিস্টারকে ম্যাচ শেষে বলেন, ‘আমার মনে হয় না অন্য দলগুলোর স্কোয়াড আমাদের চেয়ে ভালো। আমাদের সেরা চারে থাকলেই শুধু হবে না, লিগ জিততে হবে।’

কাদিসের বিপক্ষে হতাশা কাটিয়ে ওঠার খুব বেশি সময় পাচ্ছে না কুমানের দল। রোববার রাতে নিজ মাঠ কাম্প ন্যুয়ে লেভান্তের বিপক্ষে নামছে বার্সেলোনা। তার তিন দিন পর ইউয়েফা চ্যাম্পিয়নস লিগে পর্তুগালের ক্লাব বেনফিকার মুখোমুখি হবে স্প্যানিশ জায়ান্টরা।

আরও পড়ুন:
‘ম্যাচ শুরুর পর কেন খোঁজা হলো?’ প্রশ্ন মেসির
কোভিড জটিলতায় স্থগিত ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা ম্যাচ
কোপা ফাইনালের পর আবার মুখোমুখি ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা

শেয়ার করুন

সাফে জামালই অধিনায়ক থাকছেন

সাফে জামালই অধিনায়ক থাকছেন

ছবি: বাফুফে

অস্কার ব্রুজন নিজেই জানালেন অধিনায়কে কোনো বদল আসছে না। সাফেও জামাল ভূঁইয়ার হাতেই অধিনায়কের আর্মব্যান্ড উঠছে।বৃহস্পতিবার সাংবাদিকদের এ কথা জানান স্প্যানিশ কোচ।

জাতীয় দলের কোচ হিসেবে বসুন্ধরা কিংসের কোচ অস্কার ব্রুজন দায়িত্ব নেয়ার পর অনেক পরিবর্তন দেখা গেছে। স্কোয়াড থেকে শুরু করে জাতীয় দলের কোচিং স্টাফেও বেশ কিছু পরিবর্তন এসেছে। এমন অবস্থায় আসন্ন সাফে অধিনায়কও বদল হতে যাচ্ছে বলে গুঞ্জন ছিল।

তবে, অস্কার ব্রুজন নিজেই জানালেন অধিনায়কে কোনো বদল আসছে না। সাফেও জামাল ভূঁইয়ার হাতেই অধিনায়কের আর্মব্যান্ড উঠছে।

বৃহস্পতিবার জাতীয় দলের প্রথমদিনের অনুশীলন শেষে সাংবাদিকদের এ কথা জানান স্প্যানিশ কোচ।

অধিনায়ক পরিবর্তন হবে কী না এমন প্রশ্নের অস্কার বলেন, ‘জামাল অধিনায়ক হিসেবে থাকছেন। আমরা পরিবর্তন করতে যাচ্ছি না। আমরা সবাই খুব খুশি। জামাল খুব ভালো কাজ করে। তাই আমি জানি না এই কথা কেনো আসছে। জামাল সেই অধিনায়ক যার সঙ্গে আমরা আলোচনা করেছি। জামাল সেই অধিনায়ক যাকে আমরা চাই।’

এ দিকে টানা কিরগিজস্তান সফর, এএফসি কাপ ও প্রিমিয়ার লিগ চলমান থাকায় খেলোয়াড়রা শারীরিকভাবে ক্লান্ত রয়ে গেছেন কিনা এমন প্রশ্নের উত্তরে অস্কর বলেন, ‘কিছু খেলোয়াড় তিন সপ্তাহ আগে লিগ শেষ করেছে। কিছু খেলোয়াড় এক সপ্তাহ আগে ও কিছু খেলোয়াড় তিন দিন আগে। এখন আমরা জিপিএস দিয়ে তাদের গতিবিধি ও শারীরিক অবস্থা দেখার চেষ্টা করব। তারপরেই জানাতে পারব ওরা কী অবস্থায় আছে।’

প্রথমবারের মতো অস্কার ব্রুজনের অধীনে মাঠের অনুশীলনে নেমেছে জাতীয় ফুটবল দল। প্রথম দিনে খেলোয়াড়দের নিজের পরিকল্পনা জানানো হয়েছে বলে জানান অস্কার ব্রুজন।

একই সঙ্গে ফুটবলারদেরকে পর্যবেক্ষণের মাধ্যমে চূড়ান্ত দল তৈরি করা হবে বলছেন স্প্যানিশ কোচ।

অস্কার বলেন, ‘আমরা তাদের পর্যবেক্ষণ করছি। তাদের অনুসরণ করছি, ভিডিও দেখছি। যে ফুটবল আইডিয়া নিয়ে কাজ করার জন্য নেমেছি সেটা বাস্তবায়নে সব খেলোয়াড় মাঠে নামার জন্য ফিট।’

২৮ সেপ্টেম্বর সাফে অংশ নিতে মালদ্বীপ যাচ্ছে জাতীয় দল। তার আগে চূড়ান্ত দল ঘোষণা করা হবে বলে জানিয়েছে বাফুফে।

আরও পড়ুন:
‘ম্যাচ শুরুর পর কেন খোঁজা হলো?’ প্রশ্ন মেসির
কোভিড জটিলতায় স্থগিত ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা ম্যাচ
কোপা ফাইনালের পর আবার মুখোমুখি ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা

শেয়ার করুন

সাফে চমকে দেবে বাংলাদেশ বিশ্বাস এলিটার

সাফে চমকে দেবে বাংলাদেশ বিশ্বাস এলিটার

অনুশীলন শেষে এলিটা কিংসলে। ছবি: বাফুফে

জাতীয় দলে বলা যায় এক রকম অভিষেক হয়ে গেছে কিংসলের। প্রথম লাল-সবুজ জার্সি গায়ে চাপানোর সুযোগ হয়েছে এই ফুটবলারের। জার্সি গায়ে আবেগাপ্লুত হয়ে পড়েন কিংসলে।

বাংলাদেশ দলের হয়ে প্রথমবার অনুশীলন করলেন এলিটা কিংসলে। ক্লাবের পরিচিত কোচ অস্কার ব্রুজনের অধীনে প্রথম দিনটা হালকা মেজাজেই কেটেছে এই বাংলাদেশি ফুটবলারের। কোচের পরিকল্পনা অনুযায়ী খেলতে পারলে সাফে চমকে দিবে বাংলাদেশ এমনটাই বিশ্বাস কিংসলের।

প্রথমদিনের অনুশীলন শেষে বৃহস্পতিবার সাংবাদিকদের এমন আশ্বাস দেন তিনি।

কিংসলে বলেন, ‘আমার মনে হচ্ছে এখনও বসুন্ধরা কিংসে আছি। কোচ অস্কারের অধীনে আমার কাছে নতুন কিছু নেই। সবকিছু একই সিস্টেম যা আমি জানি। আমরা যদি এই পদ্ধতিতে যাই তাহলে সাফে ভিন্ন কিছু পাব।

‘কোচ আলাদা ও ধারণা আলাদা। যদি সেই ভিন্ন ধারণা বাস্তবায়ন করতে সক্ষম হই, আমি বিশ্বাস করি বাংলাদেশ সাফে চমক দিতে পারে। আজকের প্রশিক্ষণের পর এটা আমার মনে হয়েছে।’

জাতীয় দলে বলা যায় এক রকম অভিষেক হয়ে গেছে কিংসলের। প্রথম লাল-সবুজ জার্সি গায়ে চাপানোর সুযোগ হয়েছে এই ফুটবলারের। জার্সি গায়ে আবেগাপ্লুত হয়ে পড়েন কিংসলে।

তিনি বলেন, ‘এটি একটি ভিন্ন অনুভূতি। আমরা একসঙ্গে খেলেছি, অনুশীলন করেছি। প্রথমবার জাতীয় দলের জার্সি গায়ে লাগানো সত্যিই অদ্ভুত। যখন জার্সি পরেন ও জার্সি গায়ে দেওয়ার কারণ তুলে ধরেন, তখন আপনার আবেগ চলে আসে।’

জাতীয় দলে ইতিবাচক পরিবর্তন এনে দেশের মানুষকে খুশির মুহূর্ত উপহার দিতে চান এলিটা।

তিনি বলেন, ‘কাজে মনোনিবেশ করতে হবে। ভিন্ন একটা জাতীয় দল সমন্বয় করা হবে কাজ। এর আগে আমি ক্লাবের জন্য যা করেছি তা গোটা দেশ প্রশংসা করেছে। কিন্তু বর্তমানে জাতীয় দলে একটা ইতিবাচক পরিবর্তন আনতে চাই। আমরা সবাই মিলে একটি জাতীয় দল চাই যা বাংলাদেশের মানুষকে আনন্দ দিতে পারে। সে জন্যই আমরা কাজ করছি।’

এখনও জাতীয় দলে খেলা নিশ্চিত নয় এলিটার। ফিফার ক্লিয়ারেন্স পাওয়া বাকি। জাতীয় দলের হয়ে তার খেলা নিশ্চিত করা বাংলাদেশ ফুটবলের ফেডারেশনের দায়িত্ব বলে উল্লেখ করেন এলিটা।

বসুন্ধরা কিংসের এই ফরোয়ার্ড বলেন, ‘এটা আমার ক্ষমতার মধ্যে নেই। এটা বাফুফের উপর নির্ভর করে। কিন্তু আমি নিশ্চিত আমি খেলার যোগ্য। যদি আমি সাফে খেলার সুযোগ পাই, তাহলে আমি কেন এই জার্সি পরেছি তার প্রকৃত কারণ প্রমাণ করতে পারব।’

আরও পড়ুন:
‘ম্যাচ শুরুর পর কেন খোঁজা হলো?’ প্রশ্ন মেসির
কোভিড জটিলতায় স্থগিত ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা ম্যাচ
কোপা ফাইনালের পর আবার মুখোমুখি ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা

শেয়ার করুন

ব্রুজনের ৪-৩-৩ মনে ধরেছে জামালের

ব্রুজনের ৪-৩-৩ মনে ধরেছে জামালের

অনুশীলন শেষে সংবাদমাধ্যমের সঙ্গে কথা বলছেন জামাল ভূঁইয়া।ছবি: বাফুফে

জেমি ডের অধীনে তিন বছরের কোচিং স্টাইল ভুলে শুরু হয়েছে অস্কার ব্রুজনের নতুন ফুটবল পদ্ধতি। এই স্প্যানিশ কোচের খেলার ধরন আর পরিকল্পনা মনে ধরেছে জামাল ভূঁইয়ার।

সাফ চ্যাম্পিয়নশিপ সামনে রেখে প্রথমদিনের অনুশীলন সেরেছে জাতীয় ফুটবল দল। জেমি ডের অধীনে তিন বছরের কোচিং স্টাইল ভুলে শুরু হয়েছে অস্কার ব্রুজনের নতুন ফুটবল পদ্ধতি। এই স্প্যানিশ কোচের খেলার ধরন আর পরিকল্পনা মনে ধরেছে জামাল ভূঁইয়ার।

অনুশীলন শেষে বৃহস্পতিবার সংবাদমাধ্যমকে জামাল ভূঁইয়া বলেন, ‘জেমির অধীনেও আমরা ৪-৩-৩ খেলেছি। ব্যক্তিগত ভাবে আমি মনে করি এ ফরমেশন সবচেয়ে ভাল। শেষ ৩-৪ ম্যাচ জেমির অধীনে ৩-৪-৩ খেলছি। লিগে একটা দলও ৩-৪-৩ এ খেলে না। হয়তো শুধু মোহামেডান খেলে। অধিকাংশ দলই ৪-৩-৩ বা ৪-৫-১ এ খেলে।’

২৭ সদস্যের পুরো স্কোয়াড নিয়ে অনুশীলন শুরু করেছে জাতীয় দল। প্রথম দিন নিজের পরিকল্পনা ফুটবলারদের বুঝিয়ে দিয়েছেন কোচ ব্রুজন।

পরিকল্পনা কী জানতে চাইলে জামাল বলেন, ‘উনার পরিকল্পনা কী সেটা জানিয়েছেন। কীভাবে খেলতে হবে আর উনি কী চান। এসব আজ আলাপ করেছি।’

নতুন স্কোয়াড নিয়ে ভালো কিছু হবে বিশ্বাস জাতীয় দলের অধিনায়কের। বলেন, ‘আমরা সবাই চেষ্টা করব। ভালো একটা দল আছে। সবাই সবাইকে ভালো করে জানি। অধিকাংশই আমরা অনেকদিন এক সঙ্গে খেলছি।

‘যেসব বিষয় নতুন সেটা নিয়ে একটু একটু বেশি ব্যাখ্যা করেছেন (কোচ)। বসুন্ধরার প্লেয়ার ছাড়া বাকিরা অস্কারের সঙ্গে আলাপ করেছে। উনি তো নতুন ভাবে খেলাতে চায়, এটা আমাদের মানিয়ে নিতে হবে।’

কোচের অধীনে তার চাহিদা অনুযায়ী প্রথম দিন অনুশীলন করা হয়েছে বলে জানান জামাল।

বলেন, ‘আজকের ফোকাস ছিল স্পিড উইথ দ্য বল ও পাসিং। কারণ পাসিং ও বল ধরে রাখার দরকার আছে। আর অস্কার এটাই ফোকাস করছে। নতুন ফরমেশন। খেলার ধরনেও চেঞ্জ হবে।’

আরও পড়ুন:
‘ম্যাচ শুরুর পর কেন খোঁজা হলো?’ প্রশ্ন মেসির
কোভিড জটিলতায় স্থগিত ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা ম্যাচ
কোপা ফাইনালের পর আবার মুখোমুখি ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা

শেয়ার করুন

ব্রুজনের ভরসার প্রতিদান দিতে চান জুয়েল

ব্রুজনের ভরসার প্রতিদান দিতে চান জুয়েল

ছবি: সংগৃহীত

২০১৯ সালে যুব ভারতীতে ভারতের বিপক্ষে বিশ্বকাপ বাছাইয়ের ম্যাচের স্কোয়াডে ছিলেন জুয়েল। মাঠে নামা হয়নি তার। সবশেষ ২০১৮ সালে জাতীয় দলের হয়ে নামেন এই উইঙ্গার। মাঝের বিরতির পর ডাক পেয়ে উচ্ছসিত ২৫ বছর বয়সী এই ফুটবলার।

আড়াই বছর পর জাতীয় দলে ডাক পেয়েছেন ঢাকা আবাহনীর ফরোয়ার্ড জুয়েল রানা। জাতীয় দলের কোচ জেমি ডের উপেক্ষিত এই রাইট উইঙ্গার জায়গা করে নিয়েছেন নতুন কোচ অস্কার ব্রুজনের প্রাথমিক স্কোয়াডে।

নতুন কোচের ভরসার প্রতিদান দিতে চান প্রিমিয়ার লিগে ১০ গোল নিয়ে স্থানীয়দের মধ্যে সর্বোচ্চ গোলদাতা হওয়া এই ফুটবলার।

জুয়েল নিউজবাংলাকে বলেন, ‘লিগে ১০ গোল করেছি টুর্নামেন্টে ২ গোল করেছি। সবমিলে আলহামদুলিল্লাহ ভালো। যদি মূল দলে সুযোগ পাই তাহলে গোল করার বা করানোর এক শ ভাগ চেষ্টা করব।’

২০১৯ সালে যুব ভারতীতে ভারতের বিপক্ষে বিশ্বকাপ বাছাইয়ের ম্যাচের স্কোয়াডে ছিলেন জুয়েল। মাঠে নামা হয়নি তার। সবশেষ ২০১৮ সালে জাতীয় দলের হয়ে নামেন এই উইঙ্গার। মাঝের বিরতির পর ডাক পেয়ে উচ্ছসিত ২৫ বছর বয়সী এই ফুটবলার।

জুয়েল বলেন, ‘সবকিছু মিলে ভালো লাগছে। সবারই আশা থাকে জাতীয় দলে থাকার। কেউতো আর বের হতে চায় না। পারফরম্যান্সও খুব একটা ভালো ছিল না।’

জেমির উপক্ষিত ফুটবলার হতে পারেন ব্রুজনের ট্রাম্প কার্ড। তবে জাতীয় দলে পুনরায় ঢোকা সহজ ছিল না তার জন্য। লিগে গোল করার বিকল্প তার হাতে ছিল না বলে জানান জুয়েল।

তিনি বলেন, ‘ফরোয়ার্ড যেহেতু খেলি তাই গোল করতে হবে। গোল না করলে জাতীয় দলে ঢোকা অনেক টাফ হয়ে যাবে। সেই কাজটাই আমি চেষ্টা করেছি।’

২০১৫ সালে সিঙ্গাপুরের বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে জাতীয় দলে অভিষেক হয় জুয়েলের। ছয় বছরে লাল-সবুজ জার্সিতে ২১টি ম্যাচে খেলেছেন তিনি। এখনও পর্যন্ত গোলের দেখা পাননি।

আরও পড়ুন:
‘ম্যাচ শুরুর পর কেন খোঁজা হলো?’ প্রশ্ন মেসির
কোভিড জটিলতায় স্থগিত ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা ম্যাচ
কোপা ফাইনালের পর আবার মুখোমুখি ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা

শেয়ার করুন

চলে গেলেন বাফুফের সাবেক কর্মকর্তা ফাত্তাহ

চলে গেলেন বাফুফের সাবেক কর্মকর্তা ফাত্তাহ

ছবি: সংগৃহীত

হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে বৃহস্পতিবার ভোর সাড়ে পাঁচটার দিকে রাজধানীর একটি হাসপাতালে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি।

সাইফ গ্লোবাল স্পোর্টসের জেনারেল ম্যানেজার ও বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের সাবেক কর্মকর্তা আহমেদ সাইদ আল ফাত্তাহ আর নেই।

হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে বৃহস্পতিবার ভোর সাড়ে পাঁচটার দিকে রাজধানীর একটি হাসপাতালে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি।

মৃত্যুকালে স্ত্রী ও কন্যা সন্তানসহ অসংখ্য গুনগ্রাহী রেখে গেছেন তিনি।

তার স্ত্রী আফরোজা আহমেদ বীথি সাংবাদিকদের জানান, রাতে সাড়ে তিনটার পর অসুস্থ হয়ে পড়েন ফাত্তাহ। হাসপাতালে নেয়া হলে জরুরি বিভাগে নেয়া হয়। কর্তব্যরত চিকিৎসক তার মৃত্যুর বিষয়টি জানান।

ঢাকা ক্যান্টনমেন্ট পোস্ট অফিস মসজিদে জানাজা শেষে কুষ্টিয়ায় পারিবারিক কবরস্থানে মরদেহ দাফন করা হচ্ছে ফাত্তাহকে।

ক্রীড়াঙ্গনের পরিচিত মুখগুলোর একজন ছিলেন ফাত্তাহ।

২০০৫ সালে মিডিয়া ম্যানেজার হিসেবে বাফুফেতে যোগদান করেন তিনি। খুব অল্প দিনে ফাতাহ ক্রীড়াঙ্গন ও সংবাদমাধ্যমে সবার প্রিয় হয়ে ওঠেন৷ ২০১১ সালে বাফুফের সঙ্গে তার সম্পর্কছেদ ঘটে। কয়েক বছর নিজ জেলা কুষ্টিয়াতে যান। সেখানে নারী ফুটবল নিয়ে কাজ করেন।

২০১৬ সালে আবার বাফুফেতে যোগদান করেন। সেবার মার্কেটিং ও সভাপতি কাজী সালাউদ্দিনের ব্যক্তিগত সচিব হিসেবে। তিন বছর এই দায়িত্বে ছিলেন।

২০১৯ সাল থেকে স্পোর্টস ম্যানেজমেন্ট গ্রুপ সাইফ গ্লোবাল স্পোর্টসে যোগ দেন। সেখানে ম্যানেজার হিসেবে কর্মরত ছিলেন। দেশের অন্যতম শীর্ষ ক্লাব সাইফ স্পোর্টিং ক্লাবের সঙ্গেও সম্পৃক্ত ছিলেন৷

ফুটবলের বাইরে অন্যান্য খেলাধুলা নিয়েও সমান আগ্রহ ছিলো আহমেদ সাঈদ আল ফাত্তাহর।

তার মৃত্যুতে শোকের ছায়া নেমে এসেছে ফুটবলাঙ্গনে। শোক জানিয়েছে সাইফ গ্রুপ।

আরও পড়ুন:
‘ম্যাচ শুরুর পর কেন খোঁজা হলো?’ প্রশ্ন মেসির
কোভিড জটিলতায় স্থগিত ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা ম্যাচ
কোপা ফাইনালের পর আবার মুখোমুখি ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা

শেয়ার করুন