স্পিন কন্ডিশন পেয়ে রোমাঞ্চিত আজাজ

স্পিন কন্ডিশন পেয়ে রোমাঞ্চিত আজাজ

মিরপুর শের-ই-বাংলা ক্রিকেট স্টেডিয়ামে অনুশীলনে নিউজিল্যান্ড ক্রিকেট দলের সদস্যরা। ছবি: সাইফুল ইসলাম

বাংলাদেশের বিপক্ষে সিরিজ চ্যালেঞ্জ হিসেবে নিলেও সেটিকে বেশ উপভোগ করছেন সফরকারীরা। একইসঙ্গে পরিকল্পনা মাফিক খেলে বাংলাদেশের বিপক্ষে ভালো খেলতে মুখিয়ে রয়েছেন তারা।

ঘরের মাঠে টানা পাঁচ সিরিজ খেলে গেল ২৪ তারিখ পাঁচ ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজ খেলতে বাংলাদেশে এসেছে নিউজিল্যান্ড। নিজেদের মাঠে ফাস্ট উইকেটে লম্বা সময় খেলার পর বাংলাদেশের স্পিনবান্ধব স্লো উইকেটে খেলতে এসে বেশ রোমাঞ্চিত কিউইরা।

বাংলাদেশের বিপক্ষে সিরিজটা চ্যালেঞ্জ হিসেবে নিলেও সেটিকে বেশ উপভোগ করছেন সফরকারীরা। একইসঙ্গে পরিকল্পনা মাফিক খেলে বাংলাদেশের বিপক্ষে ভালো খেলতে মুখিয়ে রয়েছেন তারা।

এমনটাই জানান নিউজিল্যান্ডের বাঁহাতি স্পিনার আজাজ প্যাটেল। ২৭ তারিখ থেকে অনুশীলন শুরু করে বাংলাদেশের কন্ডিশন সম্পর্কে ইতোমধ্যেই ভালো ধারণা করে ফেলেছেন বলে জানান তিনি।

এক ভিডিও বার্তায় এমনটাই জানান প্যাটেল। তিনি মনে করেন ভিন্ন কন্ডিশন হলেও বাংলাদেশে তারা মানিয়ে নিচ্ছেন।

আজাজ বলেন, ‘অবশ্যই এখানে আলাদা। তবে এটা ভিন্ন ধরনের চ্যালেঞ্জ নিয়ে আসে। আজকে নেট করাটা দারুণ ছিল। কিছুটা ধারণা পেয়েছি, সামনে আমরা কী পাচ্ছি। খুব বেশি আশা নিয়ে নেটে যাইনি। স্রেফ কন্ডিশনের ধারণা নেওয়া ও সেভাবেই ম্যাচ পরিকল্পনা গড়ার চেষ্টা করাটা মাথায় ছিল।’

অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে দুর্দান্ত ফর্মে থাকা বাংলাদেশকে ছোট করে দেখছেন না এই ব্ল্যাক ক্যাপ স্পিনার। এই কন্ডিশনে বাংলাদেশের পাশাপাশি তাদের স্পিনাররা সফলতা পাবেন বলে মনে করেন তিনি।

প্যাটেল বলেন, ‘কন্ডিশনের সহায়তা যখন মেলে, সব বোলারকেরই তা রোমাঞ্চিত করে। পাশাপাশি এটাও বুঝতে হবে, ওদের ব্যাটসম্যানরা স্পিন খুব ভালো খেলে। আমরা ওদের কন্ডিশনে খেলছি। এখানে ওরা অনেক বড় দলকে হারিয়েছে। নিশ্চিত করতে হবে যেন আমরা নিজেদের সেরাটা খেলতে পারি।’

একই সঙ্গে বোলিং কোচ থিলান সামারাবিরার পরামর্শ মেনে, এবং তার অভিজ্ঞতা কাজে লাগিয়ে বাংলাদেশের বিপক্ষে ভালো কিছু করতে চান বলে জানান তিনি।

বাঁহাতি এই স্পিনার বলেন, ‘আমরা স্পিন বোলাররা আলোচনা করেছি, এখানে কেমন হবে, আমরা কোন পথে এগোব। থিলানের সঙ্গে তো কথা হচ্ছেই। উপমহাদেশে তার অভিজ্ঞতা অনেক। তার কাছ থেকে জানতে পারছি, ব্যাটসম্যানরা কিভাবে খেলবে এবং কোন জায়গাগুলোয় খেলতে চাইবে।’

বাংলাদেশের বিপক্ষে নিউজিল্যান্ডের পাঁচ ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজটি মাঠে গড়াবে বুধবার থেকে।

আরও পড়ুন:
বোলিং কম্বিনেশনের ওপর জোর মাহেদীর
ভিসা জটিলতায় বাংলাদেশ-আফগানিস্তান সিরিজ দেরিতে
বিশ্বকাপের আগে ক্রিকেটারদের ছুটি দিতে চায় বিসিবি
মুস্তাফিজকে নিয়ে বাড়তি সতর্ক ব্ল্যাকক্যাপস
ওপেনারদের নিয়ে চিন্তিত নন প্রিন্স

শেয়ার করুন

মন্তব্য

শান্তর পর শুক্কুরের ব্যাটে বড় সংগ্রহ এ-দলের

শান্তর পর শুক্কুরের ব্যাটে বড় সংগ্রহ এ-দলের

এ-দল ও এইচপির মধ্যেকার ম্যাচের দ্বিতীয় দিনের একটি মুহূর্ত। ছবি: বিসিবি

চারদিনের ম্যাচের দ্বিতীয় দিনে ৩৩৯ রানে অল আউট হয়েছে এ-দল। জবাবে ব্যাট করতে নেমে দ্বিতীয় দিন শেষে এইচপি দলের সংগ্রহ ৩ উইকেটের খরচায় ৪১ রান।

চট্টগ্রামে বাংলাদেশ-এ দল ও হাই পারফরম্যান্স ইউনিটের (এইচপি) মধ্যকার চারদিনের ম্যাচের দ্বিতীয় দিনে ৩৩৯ রানে অল আউট হয়েছে এ-দল। জবাবে ব্যাট করতে নেমে দ্বিতীয় দিন শেষে এইচপি দলের সংগ্রহ ৩ উইকেটের খরচায় ৪১ রান।

চার দিনের ম্যাচের প্রথম দিনে সেঞ্চুরির আক্ষেপ নিয়ে মাঠ ছেড়েছিলেন এ-দলের নাজমুল হোসেন শান্ত। দ্বিতীয় দিনে একই হতাশায় ডুবতে হল ইরফান শুক্কুরকে।

শান্তর চেয়ে তার কষ্ট কিছুটা কম থাকার কথা। কেননা শান্তর আক্ষেপ ছিল ৪ রানের। আর শুক্কুরের ১৫।

৫ উইকেটের বিনিময়ে ২৬০ রান দিয়ে দ্বিতীয় দিন শুরু করে শুরুতে মুনিম শাহরিয়ারকে হারায় এ-দল। সুমন খানের বলে আকবর আলীর হাতে ধরা দিয়ে সাজঘরে ফেরেন এই ব্যাটসম্যান।

সুমন খানের কল্যাণে উইকেটে থিতু হতে পারেননি নাঈম হাসানও। এরপর ভুল বোঝাবুঝিতে রান আউটের শিকার হন শহিদুল ইসলাম।

উইকেটের একপ্রান্ত আগলে ধরে রাখেন ইরফান। সঙ্গে পান কামরুল ইসলাম রাব্বিকে। ব্যক্তিগত অর্ধশতক তুলে নিয়ে ব্যাট ছোটান শতকের দিকে।

তার ছুটন্ত ব্যাট থামে হাসান মুরাদের কারনে। ২ ছক্কা এবং ১০ চারে ৮৫ রান করেই থামতে হয় তাকে। এ-দলের কফিনের শেষ পেরেকটি ঠুকে দেন সুমন খান।

৬৬ বলে ১২ রান করা রাব্বিকে এলবিডব্লিউয়ের ফাঁদে ফেলে। ততক্ষণে ৩৩৯ রানের বড় পুঁজি পেয়ে গেছে মোহাম্মদ মিঠুনের এ-দল।

জবাবে ব্যাট করতে নেমে শুরুটা বেশ সাবধানী হলেও বেশিক্ষণ সেটি ধরে রাখতে পারেনি এইচপি দল।

২৯ রানে এক উইকেট হারানোর পর দলীয় স্কোরে এক রান যোগ করতে আরও দুই উইকেট হারায় তারা। ফলে তিন উইকেটের বিনিময়ে ৪১ রান করে দিন শেষ করে আকবর আলীরা।

আরও পড়ুন:
বোলিং কম্বিনেশনের ওপর জোর মাহেদীর
ভিসা জটিলতায় বাংলাদেশ-আফগানিস্তান সিরিজ দেরিতে
বিশ্বকাপের আগে ক্রিকেটারদের ছুটি দিতে চায় বিসিবি
মুস্তাফিজকে নিয়ে বাড়তি সতর্ক ব্ল্যাকক্যাপস
ওপেনারদের নিয়ে চিন্তিত নন প্রিন্স

শেয়ার করুন

চতুর্থ ম্যাচ জিতল আফগান যুবারা

চতুর্থ ম্যাচ জিতল আফগান যুবারা

ফাইল ছবি

আফগানিস্তানের দেয়া ২১১ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে ১৯১ রানে গুটিয়ে যায় বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-১৯ দল। আর সেই সুবাদে ১৯ রানের জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে সফরকারীরা।

টানা তিন ম্যাচ জয়ের পর আফগানিস্তানের বিপক্ষে সিরিজের চতুর্থ ম্যাচে এসে হোঁচট খেল বাংলাদেশের যুবারা। আফগানিস্তানের দেয়া ২১১ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে ১৯১ রানে গুটিয়ে যায় বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-১৯ দল। আর সেই সুবাদে ১৯ রানের জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে সফরকারীরা।

সিলেট আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে দিনের শুরুতে ব্যাট করতে নেমে আফগান ওপেনার সুলাইমান আরবজাইয়ের ৫২ বলে ৪৩ এবং বিল্লাল আহমেদের ৮৮ বলে ৬০ রানের ইনিংসে নির্ধারিত ৫০ ওভারে ৮ উইকেটের খরচায় ২১০ রানের পুঁজি পায় সফরকারীরা।

বাংলাদেশের হয়ে ৫৯ রানে দুই উইকেট নেন মহিউদ্দিন তারেক। একটি করে উইকেট নেন মুশফিক হাসান, এসএম মেহেরুব, আইচ মোল্লা, নাইমুর রহমান এবং আবদুল্লাহ আল মামুন।

জবাবে ব্যাট করতে নেমে দুর্দান্ত সূচনা করে টাইগার যুবারা। মাফিজুল ইসলাম এবং ইফিতেখার ইসলামের ওপেনিং জুটি থেকে আসে ৫২ রান। দলীয় ৫২ ও ব্যক্তিগত ১৮ রানে ইফিতেখারের বিদায়ের পর বিপর্যয় নেমে আসে স্বাগতিকদের শিবিরে।

৯১ রান তুলতে ৫ ব্যাটসম্যান সাজঘরে ফেরেন বাংলাদেশের। কিন্তু উইকেট কামড়ে রেখে রানের চাকা সচল রাখেন তাহজিবুল ইসলাম। তুলে নেন ব্যক্তিগত অর্ধশতক।

উইকেটের অপরপ্রান্তে আসা যাওয়ার মিছিল না থামায় ব্যর্থ হয় তার দুর্দান্ত ইনিংসটি। শেষতক সবগুলো উইকেটের খরচায় ১৯১ রানে থামে স্বাগতিকদের চাকা। এতে করে সিরিজে প্রথম জয় পায় সফরকারীরা।

আফগানদের হয়ে দুটি করে উইকেট নেন নানগেয়ালিয়া খারোটে, ইজহারুল হক নাভিদ এবং শাহিদুল্লাহ হাসানি। আর একটি করে উইকেট ঝুলিতে পুরেন ইয়ামা আরব, ফয়সাল খান আহমেদজাই এবং মোহাম্মদ নাজিবুল্লাহ।

আরও পড়ুন:
বোলিং কম্বিনেশনের ওপর জোর মাহেদীর
ভিসা জটিলতায় বাংলাদেশ-আফগানিস্তান সিরিজ দেরিতে
বিশ্বকাপের আগে ক্রিকেটারদের ছুটি দিতে চায় বিসিবি
মুস্তাফিজকে নিয়ে বাড়তি সতর্ক ব্ল্যাকক্যাপস
ওপেনারদের নিয়ে চিন্তিত নন প্রিন্স

শেয়ার করুন

নিউজিল্যান্ডের পর সিরিজ বাতিল করতে পারে ইংল্যান্ডও

নিউজিল্যান্ডের পর সিরিজ বাতিল করতে পারে ইংল্যান্ডও

ছবি: এএফপি

নিউজিল্যান্ডের সিরিজ বাতিল করার পরপরই শঙ্কা দেখা দিয়েছে ইংল্যান্ডের পাকিস্তান সফর নিয়েও। নিরাপত্তা ইস্যু নিয়ে  ভাবতে শুরু করেছে ইংল্যান্ড অ্যান্ড ওয়েলস ক্রিকেট বোর্ড (ইসিবি)। বোর্ডের পক্ষ থেকে জানানো হয় ২৪ থেকে ৪৮ ঘণ্টার ভেতর পাকিস্তান সফর নিয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত জানাবে তারা।

১৮ বছরের অপেক্ষার পর পাকিস্তানে সিরিজ খেলতে যায় নিউজিল্যান্ড। সিরিজ না খেলে দেশে ফিরে যাচ্ছে ব্ল্যাক ক্যাপস। নিরাপত্তা ইস্যুতে সিরিজের প্রথম ম্যাচ মাঠে গড়ানোর আগে সিরিজ বাতিল করেছে নিউজিল্যান্ড ক্রিকেট বোর্ড।

ক্রিকেট বোর্ডের নিরাপত্তা ইউনিটের তথ্য অনুযায়ী নিউজিল্যান্ড ক্রিকেট দলের মাঠে যাওয়ার সময় হামলার আশঙ্কাতে বাতিল ঘোষণা করা হয় সিরিজটি।

সিরিজের প্রথম ওয়ানডে আজ বিকেলে মাঠে গড়ানোর কথা ছিল। কিন্তু নির্দিষ্ট সময় পার হয়ে যাওয়ার পরও মাঠে উপস্থিত হননি নিউজিল্যান্ডের ক্রিকেটাররা। যার কারণে টসে দেরি হয়।

সে সময় গুঞ্জন ওঠে নিউজিল্যান্ড শিবিরে করোনা আঘাত হানায় দেরি হচ্ছে ম্যাচে। এর কিছুক্ষণ পর আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দিয়ে সিরিজ বাতিল করে নিউজিল্যান্ড ক্রিকেট বোর্ড।

এনজেডসির পক্ষ থেকে জানানো হয়, ‘আমাদের সরকার পাকিস্তানের নিরাপত্তা পরিস্থিতি নিয়ে শঙ্কা প্রকাশ করায় ও নিরাপত্তা উপদেষ্টাদের পরামর্শে সফর বাতিল করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।’

পাকিস্তান বোর্ডের পক্ষ থেকে প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, ‘নিউজিল্যান্ড ক্রিকেট (এনজেডসি) সকালে আমাদের জানিয়েছে, তাদের কাছে নিরাপত্তা নিয়ে আশঙ্কাজনক খবর রয়েছে। যে কারণে তারা ঝুঁকি নিতে একেবারেই রাজি নয়।’

এদিকে নিউজিল্যান্ডের সিরিজ বাতিল করার পরপরই শঙ্কা দেখা দিয়েছে ইংল্যান্ডের পাকিস্তান সফর নিয়েও। নিরাপত্তা ইস্যু নিয়ে ভাবতে শুরু করেছে ইংল্যান্ড অ্যান্ড ওয়েলস ক্রিকেট বোর্ড (ইসিবি)। বোর্ডের পক্ষ থেকে জানানো হয় ২৪ থেকে ৪৮ ঘণ্টার ভেতর পাকিস্তান সফর নিয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত জানাবে তারা।

এক বিবৃতিতে ইসিবি জানায়, ‘আমাদের নিরাপত্তা উপদেষ্টাদের সঙ্গে আলোচনা করে বিষয়টি নিয়ে পর্যালোচনা করছি। আমরা ২৪ থেকে ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে পাকিস্তান সফর নিয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্তে চলে আসব।’

পাকিস্তানের বিপক্ষে তিনটি ওয়ানডে ও পাঁচটি টি-টোয়েন্টি খেলার কথা ছিল নিউজিল্যান্ডের। এর আগে সবশেষ ২০০৩ সালে পাকিস্তানে যায় নিউজিল্যান্ড ক্রিকেট দল। নিরাপত্তা ইস্যুতে এতদিন পাকিস্তান সফর থেকে বিরত ছিল ব্ল্যাক ক্যাপস।

আরও পড়ুন:
বোলিং কম্বিনেশনের ওপর জোর মাহেদীর
ভিসা জটিলতায় বাংলাদেশ-আফগানিস্তান সিরিজ দেরিতে
বিশ্বকাপের আগে ক্রিকেটারদের ছুটি দিতে চায় বিসিবি
মুস্তাফিজকে নিয়ে বাড়তি সতর্ক ব্ল্যাকক্যাপস
ওপেনারদের নিয়ে চিন্তিত নন প্রিন্স

শেয়ার করুন

পাকিস্তানে খেলবে না নিউজিল্যান্ড, সফর বাতিল

পাকিস্তানে খেলবে না নিউজিল্যান্ড, সফর বাতিল

ট্রফি নিয়ে দুই পাক ও কিউই অধিনায়কের ফটোসেশন।

তিনটি ওয়ানডে ও পাঁচটি টি-টোয়েন্টি খেলার জন্য পাকিস্তানে অবস্থান করছিল নিউজিল্যান্ডের ক্রিকেট দল। কিন্তু প্রথম ওয়ানডে মাঠে গড়ানোর দিনেই সফর বাতিলের ঘোষণা এলো।

নিরাপত্তা নিয়ে শঙ্কার কারণে গোটা পাকিস্তান সফর বাতিল করেছে নিউজিল্যান্ড ক্রিকেট দল।

শুক্রবার পৃথক বিবৃতিতে বিষয়টি নিশ্চিত করেছে পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড (পিসিবি) ও নিউজিল্যান্ড ক্রিকেট (এনজেডসি)। ইতোমধ্যেই পাকিস্তান ছেড়ে দেশে ফেরার প্রস্তুতি শুরু করেছে সফরকারী কিউইরা।

নিউজিল্যান্ড ক্রিকেট জানিয়েছে, তাদের সরকার পাকিস্তানের নিরাপত্তা পরিস্থিতি নিয়ে শঙ্কা প্রকাশ করায় এবং নিরাপত্তা উপদেষ্টাদের পরামর্শে সফর বাতিল করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

লাহোরে পাঁচ ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজে যাওয়ার আগে শুক্রবার রাওয়ালপিন্ডিতে তিন ম্যাচ সিরিজের প্রথম ওয়ানডেতে স্বাগতিক পাকিস্তানের মুখোমুখি হওয়ার কথা ছিল ব্ল্যাকক্যাপসদের। বাংলাদেশ সময় বিকেল ৩টা ৩০ মিনিটে খেলাটি অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিল।

কিন্তু ম্যাচ শুরুর কিছুক্ষণ আগেই ক্রিকেটবিষয়ক ওয়েবসাইট ইএসপিএনক্রিকইনফো জানায়, টসের সময় পেরিয়ে গেলেও দুই দল মাঠে পৌঁছায়নি। রাওয়ালপিন্ডি স্টেডিয়ামে নেই কোনো দর্শকের উপস্থিতিও। খেলোয়াড়দের হোটেলে অবস্থান করতে বলা হয়েছে এবং বাইরে বের হয়ে ঘোরাফেরা করতে নিষেধ করা হয়েছে। কিছুক্ষণের মধ্যেই নিরাপত্তা শঙ্কায় পুরো সিরিজ বাতিলের সিদ্ধান্ত এসেছে।

আরও পড়ুন:
বোলিং কম্বিনেশনের ওপর জোর মাহেদীর
ভিসা জটিলতায় বাংলাদেশ-আফগানিস্তান সিরিজ দেরিতে
বিশ্বকাপের আগে ক্রিকেটারদের ছুটি দিতে চায় বিসিবি
মুস্তাফিজকে নিয়ে বাড়তি সতর্ক ব্ল্যাকক্যাপস
ওপেনারদের নিয়ে চিন্তিত নন প্রিন্স

শেয়ার করুন

অ্যাশেজের আগে সেরে উঠতে চান পেইন

অ্যাশেজের আগে সেরে উঠতে চান পেইন

অস্ট্রেলিয়ার অধিনায়ক টিম পেইন। ফাইল ছবি

পেইন জানান, তার সামনে সুযোগ ছিল ব্যথা নিয়েই অ্যাশেজ খেলার ও অস্ত্রোপচার সিরিজ শেষে করানোর। তবে ব্যথা নিয়ে খেলতে চাননি অজি অধিনায়ক।

ডিসেম্বরে শুরু হচ্ছে অস্ট্রেলিয়া ও ইংল্যান্ডের মর্যাদার লড়াই ‘দ্য অ্যাশেজ’। তার আগেই পুরো ফিট হয়ে যাওয়ার আশা অস্ত্রোপচার করানো অস্ট্রেলিয়ান অধিনায়ক টিম পেইনের।

গত মঙ্গলবার ঘাড় ও বাঁ হাতের ব্যথার জন্য মেরুদণ্ডের ডিস্কে অস্ত্রোপচার করান পেইন। ব্যথার কারণে খেলতে ও অনুশীলন করতে সমস্যা হচ্ছিল ৩৬ বছর বয়সী এই উইকেটকিপার ব্যাটসম্যানের।

পুরো সেরে উঠতে ছয় সপ্তাহ লাগবে পেইনের। আর অ্যাশেজের প্রথম টেস্ট শুরু হচ্ছে আট ডিসেম্বর। যে কারণে অ্যাশেজে খেলতে দারুণ আশাবাদী পেইন।

অস্ট্রেলিয়ান অধিনায়ক এসইএন রেডিওকে বলেন, ‘তারা আমার গলায় গর্ত করে কণ্ঠনালি সরিয়ে মেরুদণ্ডে কাজ করেছে। গতকাল কিছুটা অস্বস্তি ছিল। আজকে অনেক ভালো বোধ করছি।’

পেইন জানান, তার সামনে সুযোগ ছিল ব্যথা নিয়েই অ্যাশেজ খেলার ও অস্ত্রোপচার সিরিজ শেষে করানোর। তবে ব্যথা নিয়ে খেলতে চাননি অজি অধিনায়ক।

পেইন বলেন, ‘আমার বাম হাতের শক্তি কমে যাচ্ছিল। নার্ভে এক ধরনের ব্যথা অনুভব করছিলাম। আমি চাইনি যে এটা স্থায়ী হয়ে যাক।’

৮ ডিসেম্বর ব্রিসবেনে হবে সিরিজের প্রথম টেস্ট। দ্বিতীয় টেস্ট হবে অ্যাডেলেইডে বক্সিং ডেতে। বাকি তিন টেস্ট হবে মেলবোর্ন, সিডনি ও পার্থে।

পেইন এই সময়ের মধ্যে সেরে উঠতে পারবেন বলে আত্মবিশ্বাসী।

তিনি বলেন, ‘অ্যাশেজের এখনও আড়াই মাস বাকি। ছয় সপ্তাহ পর আমি ক্রিকেটে ফিরব। আমার পুরো সুস্থ হতে সাত থেকে ১০ দিন সময় লাগবে। ৮ ডিসেম্বর প্রথম টেস্ট খেলা নিয়ে আমি আশাবাদী।’

অ্যাশেজের আগে ২৭ ডিসেম্বর আফগানিস্তানের বিপক্ষে টেস্ট আছে অস্ট্রেলিয়ার। তবে সেটা এখনও নিশ্চিত নয়।

আফগানিস্তানের নারী ক্রিকেটারদের খেলার অনুমতি না দিলে পুরুষ দলের বিপক্ষে টেস্ট না খেলার ঘোষণা দিয়েছে অস্ট্রেলিয়ান ক্রিকেট বোর্ড

আরও পড়ুন:
বোলিং কম্বিনেশনের ওপর জোর মাহেদীর
ভিসা জটিলতায় বাংলাদেশ-আফগানিস্তান সিরিজ দেরিতে
বিশ্বকাপের আগে ক্রিকেটারদের ছুটি দিতে চায় বিসিবি
মুস্তাফিজকে নিয়ে বাড়তি সতর্ক ব্ল্যাকক্যাপস
ওপেনারদের নিয়ে চিন্তিত নন প্রিন্স

শেয়ার করুন

বিশ্বকাপের পর টি-টোয়েন্টি অধিনায়ক থাকছেন না কোহলি

বিশ্বকাপের পর টি-টোয়েন্টি অধিনায়ক থাকছেন না কোহলি

ভারতের অধিনায়ক ভিরাট কোহলি। ফাইল ছবি

আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের ব্যস্ত সূচির প্রেক্ষিতে ও টেস্ট ও ওয়ানডে দলের অধিনায়ক হিসেবে আরও বেশি সময় দিতে ও সম্পৃক্ত হতে চান তিনি। 

যেমন জল্পনা-কল্পনা চলছিল তেমনটা সত্যি হলো। ভারতীয় টি-টোয়েন্টি স্কোয়াডের অধিনায়কত্ব থেকে নিজেকে সরিয়ে নেয়ার ঘোষণা দিলেন ভিরাট কোহলি। টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের পর দলের অধিনায়ক আর থাকছেন না বিশ্বের অন্যতম সেরা এই ব্যাটসম্যান।

বাংলাদেশ সময় সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় এক টুইটার বার্তায় নিজের এই সিদ্ধান্ত জানান কোহলি। কোহলি জানান দলের সিনিয়র সদস্য রোহিত শর্মা ও কোচ রবি শাস্ত্রীর সঙ্গে আলোচনা করে নিজের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

তিনি লেখেন, ‘সিদ্ধান্তটা নিতে সময় লেগেছে। রোহিত ও রবি ভাইয়ের মতো নেতৃস্থানীয়দের সঙ্গে কথা বলে আমি সিদ্ধান্ত নিয়েছি যে দুবাইয়েরটি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের পর টি-টোয়েন্টি দলের অধিনায়কত্ব থেকে সরে দাঁড়াব।’

কারণ হিসেবে কোহলি তুলে ধরেছেন আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের ব্যস্ত সূচির প্রেক্ষিতে ও টেস্ট ও ওয়ানডে দলের অধিনায়ক হিসেবে আরও বেশি সময় দিতে ও সম্পৃক্ত হতে চান তিনি।

তিনি লেখেন, ‘আমার মনে হয়েছে ভারতীয় দলকে ওয়ানডে ও টেস্টে অধিনায়কত্ব করার জন্য আরও বেশি সময় প্রয়োজন। অধিনায়ক হিসেবে আমি টি-টোয়েন্টি দলকে সবকিছু উজাড় করে দিয়েছি। ব্যাটসম্যান হিসেবেও তাই করতে চাই।’

গত সোমবার টাইমস অফ ইন্ডিয়া এক প্রতিবেদনে জানায় যে অধিনায়কত্ব ছাড়ার বিষয়ে বিসিসিআইয়ের সঙ্গে আলোচনা সেরেছেন কোহলি।

২০১৪ সালে মহেন্দ্র ধোনির কাছ থেকে টেস্ট অধিনায়কত্ব পান কোহলি। আর ২০১৭ সাল থেকে ভারতকে তিন ফরম্যাটে নেতৃত্ব দিচ্ছেন নভেম্বরে ৩৩ পূর্ণ করতে যাওয়া এই ব্যাটসম্যান।

তার অধীনে ভারত ২০১৭ চ্যাম্পিয়নস ট্রফি ও ২০১৯ ওয়ানডে বিশ্বকাপের ট্রফি জিততে ব্যর্থ হয় ভারত।

আরও পড়ুন:
বোলিং কম্বিনেশনের ওপর জোর মাহেদীর
ভিসা জটিলতায় বাংলাদেশ-আফগানিস্তান সিরিজ দেরিতে
বিশ্বকাপের আগে ক্রিকেটারদের ছুটি দিতে চায় বিসিবি
মুস্তাফিজকে নিয়ে বাড়তি সতর্ক ব্ল্যাকক্যাপস
ওপেনারদের নিয়ে চিন্তিত নন প্রিন্স

শেয়ার করুন

প্রথম দিনে শান্তর সেঞ্চুরি না পাওয়ার আক্ষেপ

প্রথম দিনে শান্তর সেঞ্চুরি না পাওয়ার আক্ষেপ

এ-দল ও এইচপির মধ্যেকার ম্যাচের প্রথম দিনের একটি মুহূর্ত। ছবি: বিসিবি

নাজমুল হোসেন শান্তর নৈপূণ্যে এইচপির বিপক্ষে দিনশেষে পাঁচ উইকেটে ২৬০ রান সংগ্রহ করেছে এ-দল। শান্ত ৯৬ ও সাদমান ৫৮ রান করেন।

বিসিবির হাই পারফরম্যান্স ইউনিটের (এইচপি) বিপক্ষে প্রথম চারদিনের ম্যাচের প্রথম দিন ভালো অবস্থানে আছে বাংলাদেশ এ-দল। নাজমুল হোসেন শান্তর নৈপূণ্যে দিনশেষে পাঁচ উইকেটে ২৬০ রান সংগ্রহ করেছে তারা।

সকালে টস জিতে চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে এ-দলকে টস জিতে ব্যাট করতে পাঠায় এইচপি দল।

শুরুতে সাফল্য পায় এইচপি। দলীয় ২৪ রানে সাইফ হাসানকে আউট করেন সুমন খান। সাইফের ব্যাট থেকে আসে ১৫।

এরপরই এ-দলের পক্ষে আসে দিনের সবচেয়ে বড় জুটি। দ্বিতীয় উইকেটে ১২৩ রান যোগ করেন সাদমান ইসলাম ও নাজমুল হোসেন শান্ত।

নিজের ফিফটি তুলে নেন দুই ব্যাটসম্যানই। বড় জুটি ভাঙেন হাসান মুরাদ। তার বলে ৫৮ রান করে ফেরেন সাদমান।

অন্যপ্রান্তে সেঞ্চুরির কাছে পৌঁছে যান শান্ত। তবে ৯৬ রানে তাকে আউট করে সেঞ্চুরিবঞ্চিত করেন মাহমুদুল হাসান।

এরপর বেশিক্ষণ টেকেননি এ-দলের অধিনায়ক মোহাম্মদ মিঠুন। নয় রান করে আউট হন এই উইকেটকিপার ব্যাটসম্যান।

শেষ সেশনে আরও আউট হন ইয়াসির আলি। রেজাউর রহমানের বলে আউট হওয়ার আগে তার ব্যাট থেকে আসে ২১।

দিনশেষে ইরফান শুক্কুর ২৮ ও মুনিম শাহরিয়ার ১৫ রানে অপরাজিত ছিলেন।

নভেম্বরে টেস্ট সিরিজ শুরুর আগে, টেস্ট স্পেশালিস্টদের প্রস্তুতির অংশ হিসেবে খেলা হচ্ছে এই সিরিজ।

বাংলাদেশের টেস্ট অধিনায়ক মুমিনুল খেলছেন না ম্যাচে। পারিবারিক কারণে মুমিনুল এই ম্যাচে নেই।

আর জাতীয় দলের অলরাউন্ডার মেহেদী মিরাজ ম্যাচ খেলছেন না করোনা আক্রান্ত হওয়ায়।

আরও পড়ুন:
বোলিং কম্বিনেশনের ওপর জোর মাহেদীর
ভিসা জটিলতায় বাংলাদেশ-আফগানিস্তান সিরিজ দেরিতে
বিশ্বকাপের আগে ক্রিকেটারদের ছুটি দিতে চায় বিসিবি
মুস্তাফিজকে নিয়ে বাড়তি সতর্ক ব্ল্যাকক্যাপস
ওপেনারদের নিয়ে চিন্তিত নন প্রিন্স

শেয়ার করুন