পোল্যান্ডকে উড়িয়ে টুর্নামেন্ট শুরু বাংলাদেশের

বাংলাদেশ তিনটি লোনাসহ ৪০-২২ পয়েন্টে পোল্যান্ডকে পরাজিত করে। ছবি: সংগৃহীত

পোল্যান্ডকে উড়িয়ে টুর্নামেন্ট শুরু বাংলাদেশের

স্বাগতিকরা প্রথমার্ধে ২০-১১ পয়েন্টে এগিয়ে ছিল। দ্বিতীয়ার্ধে একই ব্যবধানে একতরফা ম্যাচ জিতে নেয় বাংলাদেশ। এদিকে ২টি লোনাসহ ৩৫-৩৩ পয়েন্টে কেনিয়াকে পরাজিত করে শ্রীলঙ্কা। কেনিয়া অবশ্য ১টি লোনা পেয়েছে। তবে প্রথমার্ধে ১০-১৭ পয়েন্টে পিছিয়ে ছিল লঙ্কানরা।

বড় জয় দিয়েই বঙ্গবন্ধু কাপ-২০২১ আন্তর্জাতিক কাবাডি টুর্নামেন্ট শুরু করেছে বাংলাদেশ। রোববার পল্টনস্থ নূর হোসেন জাতীয় ভলিবল স্টেডিয়ামে উদ্বোধনী ম্যাচে বাংলাদেশ তিনটি লোনাসহ ৪০-২২ পয়েন্টে প্রায় আধিপত্য নিয়ে উড়িয়ে দিয়েছে পোল্যান্ডকে।

স্বাগতিকরা প্রথমার্ধে ২০-১১ পয়েন্টে এগিয়ে ছিল। দ্বিতীয়ার্ধে একই ব্যবধানে একতরফা ম্যাচ জিতে নেয় বাংলাদেশ। এদিকে ২টি লোনাসহ ৩৫-৩৩ পয়েন্টে কেনিয়াকে পরাজিত করে শ্রীলঙ্কা। কেনিয়া অবশ্য ১টি লোনা পেয়েছে। তবে প্রথমার্ধে ১০-১৭ পয়েন্টে পিছিয়ে ছিল লঙ্কানরা।

কোর্টে ম্যাচ গড়ানোর আগে টুর্নামেন্টের উদ্বোধন করেন বাংলাদেশ কাবাডি ফেডারেশনের সভাপতি ও র‌্যাবের মহাপরিচালক চৌধুরী আবদুল্লাহ আল মামুন।

এসময় উপস্থিত ছিলেন ফেডারেশনের সহ-সভাপতি ও জনতা ব্যাংক লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আবদুস ছালাম আজাদ, হাফিজুর রহমান খান, শাহীন আহমেদ ও ইয়াসির আহমেদ খান এবং ফেডারেশনের যুগ্ম সম্পাদক ও টুর্নামেন্ট কমিটির চেয়ারম্যান এবং পুলিশের অতিরিক্ত ডিআইজি (ডেভেলপমেন্ট) গাজী মো. মোজাম্মেল হক।

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী ও বাংলাদেশের স্বাধীনতার সূবর্ণজয়ন্তী উদযাপন উপলক্ষে পাঁচ দলের অংশগ্রহণে শুরু হয় এই বঙ্গবন্ধু কাপ-২০২১ আন্তর্জাতিক কাবাডি টুর্নামেন্ট।

দলগুলো লিগ পদ্ধতিতে মুখোমুখি হচ্ছে। ২ এপ্রিল সন্ধ্যা ৭টায় ফাইনাল অনুষ্ঠিত হবে। আগামীকাল সোমবার রাত আটটায় পোল্যান্ডের মুখোমুখি হবে শ্রীলঙ্কা। আর রাত নয়টায় বাংলাদেশের মুখোমুখি হবে নেপাল।

আরও পড়ুন:
কাবাডি নিয়ে ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রীর হতাশা
কাবাডিতে চ্যাম্পিয়ন কুমিল্লা

শেয়ার করুন

মন্তব্য

শেষ হলো বাংলাদেশ গেমসের গলফ ইভেন্ট

শেষ হলো বাংলাদেশ গেমসের গলফ ইভেন্ট

গলফ ইভেন্টের বিজয়ীরা। ছবি: সংগৃহীত

পুরুষ দলগত বিভাগে দুই রাউন্ডের খেলা শেষে অ্যামেচার গলফার মো. সাইফুল এবং মো. মুন্নার সমন্বয়ে গঠিত সাভার গলফ ক্লাব দল পারের চেয়ে ০৮ স্ট্রোক কম (১৪০ + ১৪০ = ২৮০) খেলে স্বর্ণপদক লাভ করেছে।

কুর্মিটোলা গলফ ক্লাবে ৭ থেকে ৯ এপ্রিল ৩ দিনব্যাপী অনুষ্ঠিত বঙ্গবন্ধু নবম বাংলাদেশ গেমস ২০২০-এর গলফ ইভেন্ট শেষ হয়েছে শুক্রবার।

পুরুষ দলগত বিভাগে দুই রাউন্ডের খেলা শেষে অ্যামেচার গলফার মো. সাইফুল এবং মো. মুন্নার সমন্বয়ে গঠিত সাভার গলফ ক্লাব দল পারের চেয়ে ০৮ স্ট্রোক কম (১৪০ + ১৪০ = ২৮০) খেলে স্বর্ণপদক জিতেছে।

মো. সম্রাট শিকদার ও মো. শফিক বাখার সমন্বয়ে গঠিত কুর্মিটোল গলফ ক্লাব দল পারের চেয়ে ০৪ স্ট্রোক কম (১৪৩ + ১৪১ = ২৮৪) খেলে রানার্সআপ হয়ে রৌপ্যপদক এবং সৈনিক মো. সাহাব উদ্দিন ও সৈনিক মো. আবু বকর সিদ্দিকের সমন্বয়ে গঠিত বাংলাদেশ সেনাবাহিনী দল পারের চেয়ে ০২ স্ট্রোক কম (১৪২ + ১৪৪ = ২৮৬) খেলে দ্বিতীয় রানার্সআপ হয়ে ব্রোঞ্জ পদক পেয়েছে।

মহিলা দলগত বিভাগে এক রাউন্ডের খেলা শেষে সৈনিক জাকিয়া সুলতানা এবং সৈনিক লিমা আখতারের সমন্বয়ে গঠিত বাংলাদেশ সেনাবাহিনী মহিলা গলফ দল পারের চেয়ে ০১ স্ট্রোক কম (৬৯ + ৭৪ = ১৪৩) খেলে স্বর্ণপদক জিতেছে।

সৈনিক সোনিয়া আখতার ও সৈনিক নাসিমা আখতারের সমন্বয়ে গঠিত বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর অপর মহিলা গলফ দল পারের সমান স্ট্রোক (৭৪ + ৭০ = ১৪৪) খেলে রানার্সআপ হয়ে রৌপ্যপদক এবং মিসেস তাহমিনা রহমান ও মিসেস তাসলিমা শিরিনের সমন্বয়ে গঠিত কুর্মিটোলা গলফ ক্লাব মহিলা গলফ দল পারের চেয়ে ০৬ স্ট্রোক বেশি খেলে (৭৮ + ৭৩ = ১৫১) দ্বিতীয় রানার্সআপ হয়ে ব্রোঞ্জপদক লাভ করেছে।

পুরুষ এককে (গ্রস) তৃতীয় রাউন্ডের খেলা শেষে কুর্মিটোলা গলফ ক্লাবের মো. সম্রাট শিকদার পারের চেয়ে ০৪ স্ট্রোক কম খেলে (৭০+৭৩+৬৯ = ২১২) স্বর্ণপদক লাভ করেছে। কুর্মিটোলা গলফ ক্লাবের অপর গলফার মোহাম্মাদ ফরহাদ পারের চেয়ে ০৩ স্ট্রোক বেশি (৭৩+৭৩-৭৩=২১৯) খেলে দ্বিতীয় স্থান অধিকার করে রৌপ্যপদক এবং বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর সৈনিক মো. সাহাব উদ্দিন পারের চেয়ে ০৩ স্ট্রোক বেশি (৭২+৭৪-৭৩=২১৯) খেলে তৃতীয় স্থান অধিকার করে ব্রোঞ্জ পদক পেয়েছে।

পুরুষ এককে (নেট) কুর্মিটোলা গলফ ক্লাবের মো. লিটন মণ্ডল পারের চেয়ে ০৫ স্ট্রোক কম (৭১+৭০+৭০=২১১) খেলে স্বর্ণ জিতেছেন। বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর সৈনিক মেহেদী হাসান পারের চেয়ে ০৪ স্ট্রোক কম (৭২+৭২+৬৮=২১২) খেলে দ্বিতীয় এবং কুর্মিটোলা গলফ ক্লাবের মো. সম্রাট শিকদার তৃতীয় স্থান অধিকার করে যথাক্রমে রৌপ্য ও ব্রোঞ্জপদক জয় করেছেন।

মহিলা এককে (গ্রস) বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর সৈনিক নাসিমা আক্তার পারের চেয়ে ০১ স্ট্রোক কম (৭১) খেলে স্বর্ণ জেতেন। বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর অপর মহিলা গলফার সৈনিক জাকিয়া সুলতানা পারের সমান (৭২) স্কোর খেলে রৌপ্য এবং বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর অপর মহিলা গলফার সৈনিক লিমা আক্তার ব্রোঞ্জপদক পান।

মহিলা এককে (নেট) বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর সৈনিক জাকিয়া সুলতানা পারের চেয়ে ০৩ স্ট্রোক কম (৬৯) খেলে স্বর্ণপদক জিতেছেন। বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর অপর গলফার সৈনিক নাসিমা আক্তার পারের চেয়ে ০২ স্ট্রোক কম (৭০) খেলে দ্বিতীয় এবং কুর্মিটোলা গলফ ক্লাবের মিসেস তাসলিমা শিরিন পারের চেয়ে ০১ স্ট্রোক বেশি (৭৩) খেলে তৃতীয় স্থান অধিকার করে যথাক্রমে রৌপ্য ও ব্রোঞ্জপদক লাভ করেছেন।

জেনারেল আজিজ আহমেদ, এসবিপি (বার), বিএসপি, বিজিবিএম, পিজিবিএম, বিজিবিএমএস, পিএসসি, জি, সেনাবাহিনী প্রধান, বাংলাদেশ সেনাবাহিনী, সভাপতি, বাংলাদেশ অলিম্পিক অ্যাসোসিয়েশন ও সভাপতি বাংলাদেশ গলফ ফেডারেশন প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে ঢাকা সেনানিবাসস্থ কুর্মিটোলা গলফ ক্লাবে শুক্রবার বিকেল ৪টায় বিজয়ীদের মাঝে পদক বিতরণ করেন।

আরও পড়ুন:
কাবাডি নিয়ে ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রীর হতাশা
কাবাডিতে চ্যাম্পিয়ন কুমিল্লা

শেয়ার করুন

জুডো ও কাবাডিতে সেরা আনসার-বিজিবি

জুডো ও কাবাডিতে সেরা আনসার-বিজিবি

উদযাপনে আনসার দলের সদস্যরা। ছবি: সংগৃহীত

তিন দিনব্যাপী এই প্রতিযোগিতার (পুরুষ ও মহিলা) পদক তালিকায় শীর্ষস্থান দখল করেছে বাংলাদেশ আনসার। সর্বোচ্চ ৫টি স্বর্ণপদকসহ ৯টি পদক জিতেছে তারা।

বঙ্গবন্ধু ৯ম বাংলাদেশ গেমসের জুডো ডিসিপ্লিনের খেলা শেষ হয়েছে। মিরপুরের শহীদ সোহরাওয়ার্দী ইনডোর স্টেডিয়ামে প্রতিযোগিতার শেষ দিনে শুক্রবার ৩টি ওজন শ্রেণির ফাইনাল অনুষ্ঠিত হয়।

তিন দিনব্যাপী এই প্রতিযোগিতার (পুরুষ ও মহিলা) পদক তালিকায় শীর্ষস্থান দখল করেছে বাংলাদেশ আনসার। সর্বোচ্চ ৫টি স্বর্ণপদকসহ ৯টি পদক জিতেছে তারা।

প্রধান অতিথি হিসেবে সমাপনী অনুষ্ঠানে বিজয়ীদের হাতে পদক ও সনদপত্র তুলে দেন যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব মো. আবদুল করিম। এ ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন জুডো ফেডারেশনের সভাপতি ফয়জুর রহমান ও সাধারণ সম্পাদক শাহ আলম সরদার।

সমাপনী অনুষ্ঠানে জাহিদ আহসান রাসেল বলেন, 'গত বছর বঙ্গবন্ধু ৯ম বাংলাদেশ গেমস আয়োজন করার ইচ্ছা ছিল আমাদের। আরও বড় পরিসরে প্রায় ১০ হাজার ক্রীড়াবিদ নিয়ে আসরটি আয়োজন করার ইচ্ছা ছিল। কিন্তু কোভিডের কারণে আমরা তা পারিনি। এবার আমরা ৩১ ডিসিপ্লিনে ৫ হাজার ৩০০ ক্রীড়াবিদ নিয়ে আসরটি আয়োজন করেছি।'

যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী আরও বলেন, “আমরা ২০টি জেলায় ইনডোর স্টেডিয়াম, জিমনেশিয়াম নির্মাণ করতে যাচ্ছি। সেটা হলে সেখানে গেমসের জুডো, উশু, তায়কোয়ানডো, টেবিল টেনিসের মতো খেলাগুলো সহজেই আয়োজন করা যাবে। সেই চিন্তা থেকে আমরা কাজ শুরু করেছি। এবার জুডো প্রতিযোগিতায় অংশ নেওয়া সবাইকে আমি শুভচ্ছো জানাই। আমি আশা করি, তোমরা দেশের রত্নে পরিণত হবে। যারা স্বর্ণসহ অন্যান্য পদক পেয়েছো, সবাইকে আমার পক্ষ থেকে অভিনন্দন।’

শেষ দিন পুরুষ অনূর্ধ্ব-৭৩ কেজি ওজন শ্রেণিতে স্বর্ণপদক জিতেছেন বাংলাদেশ আনসারের নাদিম মোস্তফা। বিকেএসপির আনিসুর রহমান আকাশ জেতেন রৌপ্যপদক। যৌথভাবে ব্রোঞ্জপদক জেতেন জয়পুরহাট জেলার নওশের আলী ও বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর লিটন রায়।

পুরুষ ঊর্ধ্ব-৭৩ কেজিতে স্বর্ণপদক জিতেছেন বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের (বিজিবি) মো. আবুল কালাম আজাদ। বিকেএসপির মাধব মোহন্ত জেতেন রৌপ্যপদক। যৌথভাবে ব্রোঞ্জপদক জেতেন বাংলাদেশ আনসারের মিজানুর রহমান ও ভিডিপির মো. আবু নাঈম।

মহিলা ঊর্ধ্ব-৫৭ কেজিতে স্বর্ণপদক জিতেছেন বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর তাহমিনা আক্তার লোপা। বাংলাদেশ আনসারের কাদের ফাহি জেতেন রৌপ্যপদক। যৌথভাবে ব্রোঞ্জপদক জেতেন বিকেএসপির অবনিকা হাসান ও ভিডিপির নুসাংপ্রু মারমা।

৭-৯ এপ্রিল অনুষ্ঠিত এই প্রতিযোগিতায় পুরুষ ও মহিলা খেলোয়াড়রা ৫টি করে ১০টি ওজন শ্রেণিতে পদকের জন্য লড়েন। সেনাবাহিনী, বিজিবি, পুলিশ, আনসার, ভিডিপি, বিকেএসপি, ঢাকা, বরিশাল ও রাজশাহী বিভাগ, ঢাকা ব্রাহ্মণবাড়িয়া, শেরপুর, নোয়াখালী, জয়পুরহাট, ফেনী, বরগুনা, খুলনা, চাঁপাইনবাবগঞ্জ, রাজশাহী, নারায়ণগঞ্জ জেলা ও রাজশাহী শিক্ষাবোর্ডসহ মোট ২১টি দলের ৭৪ জন পুরুষ ও ৫৪ মহিলা খেলোয়াড় অংশ নিয়েছিলেন।

কাবাডিতে সেরা বিজিবি ও আনসার

বঙ্গবন্ধু ৯ম বাংলাদেশ গেমস কাবাডি ডিসিপ্লিনে পুরুষ বিভাগে স্বর্ণপদক জিতেছে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি)। অন্যদিকে নারী বিভাগের ফাইনালে বাংলাদেশ আনসার ১৫-১৪ পয়েন্টে বাংলাদেশ পুলিশকে হারিয়ে স্বর্ণপদক জিতেছে।

কাবাডি স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত ফাইনালে বিজিবি ২৪-২২ পয়েন্টে হারিয়েছে বিমান বাহিনীকে। এই বিভাগে ব্রোঞ্জ জিতেছে সেনাবাহিনী ও নৌবাহিনী।

অন্যদিকে নারী বিভাগের ফাইনালে বাংলাদেশ আনসার ১৫-১৪ পয়েন্টে বাংলাদেশ পুলিশকে হারিয়ে স্বর্ণপদক জিতে নেয়। এই বিভাগে ব্রোঞ্জপদক জিতেছে নড়াইল জেলা ও ফরিদপুর জেলা। খেলা শেষে বিজয়ীদের হাতে পুরস্কার তুলে দেন বাংলাদেশ অলিম্পিক অ্যাসোসিয়েশনের মহাসচিব সৈয়দ শাহেদ রেজা। এ সময় উপ-মহাসচিব আসাদুজ্জামান কোহিনুর উপস্থিত ছিলেন।

আরও পড়ুন:
কাবাডি নিয়ে ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রীর হতাশা
কাবাডিতে চ্যাম্পিয়ন কুমিল্লা

শেয়ার করুন

মহিলা হকিতে চ্যাম্পিয়ন নড়াইল

মহিলা হকিতে চ্যাম্পিয়ন নড়াইল

স্বর্ণ জয়ের পর উদযাপনে নড়াইল মহিলা হকি দল। ছবি: সংগৃহীত

শুক্রবার মওলানা ভাসানী হকি স্টেডিয়ামে ফাইনালে দ্বিতীয় কোয়ার্টারে নড়াইলের হয়ে ম্যাচের একমাত্র গোলটি করেন নমিতা কর্মকার।

আন্তজেলা ও যুব গেমস চ্যাম্পিয়ন ঝিনাইদহকে ১-০ গোলে হারিয়ে বঙ্গবন্ধু ৯ম বাংলাদেশ গেমস মহিলা হকির স্বর্ণপদক জিতেছে নড়াইল জেলা দল।

শুক্রবার মওলানা ভাসানী হকি স্টেডিয়ামে ফাইনালে দ্বিতীয় কোয়ার্টারে নড়াইলের হয়ে ম্যাচের একমাত্র গোলটি করেন নমিতা কর্মকার।

শেষদিকে ঝিনাইদহ বেশ কয়েকটি আক্রমণ করলেও নড়াইলের গোলরক্ষক কাজল বিশ্বাসের দৃঢ়তায় গোল দিতে পারেনি তারা।

নড়াইলের কোচ ওস্তাদ ফজলু জানালেন, 'মেয়েরা আমার স্বপ্ন পূরণ করেছে। আমার জীবনে রৌপ্য পদক পেয়েছি। এবার মেয়েরা স্বর্ণ উপহার দিয়েছে। মেয়েদের খেলায় অনেক উন্নতি হয়েছে। ওদেরকে ধরে রাখতে হবে।'

ঝিনাইদহের কোচ জামাল হোসেন বলেন, ‘আমাদের দুর্ভাগ্য। কয়েকটি সহজ সুযোগ নস্ট হয়েছে। বড় ম্যাচে এমন সুযোগ বারবার আসে না। তারপরও মেয়েরা শেষ পর্যন্ত হাল ছাড়েনি। ওদের স্পিরিট ধরে রাখতে হবে।’

মহিলা হকিতে দিনাজপুর জেলা দলকে ১-০ গোলে হারিয়ে ব্রোঞ্জপদক জিতেছে কিশোরগঞ্জ জেলা দল।

মওলানা ভাসানী স্টেডিয়ামে খেলা শুরুর মাত্র দুই মিনিটেই রেশমা আক্তারের ফিল্ডগোলে এগিয়ে যায় কিশোরগঞ্জ জেলা দল।

এরপর আক্রমণ, পাল্টা আক্রমণ হলেও কিশোরগঞ্জের দখলেই বল বেশি ছিল। দিনাজপুর তিনটি ও কিশোরগঞ্জ ছয়টি পেনাল্টি কর্নার থেকে গোল আদায় করতে পারেননি। শেষ পর্যন্ত আর কোনো গোল না হওয়ায় ১-০ গোলের জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে কিশোরগঞ্জ।

দিনাজপুরের অধিনায়ক অর্পিতা পাল হতাশা জানিয়ে বলেন, 'একটা পদক পেলে ভালো হতো। জেলার সুনাম হতো। সবাই অনেক পরিশ্রম করেছি। আগামীতে আরো ভালো করার ইচ্ছা আছে।'

কিশোরগঞ্জের কোচ রিপেল ব্রোঞ্জ জিততে পেরে খুশি। তিনি জানান, 'গোল্ডের ইচ্ছা নিয়ে এসেছি। ব্রোঞ্জ পেয়েও খুশী। পদক কিংবা ট্রফি যত বেশি অর্জন হবে জেলা শহরগুলোতে তত বেশি মেয়েরা জড়িত হবে। জড়তা কাটবে। গেমসের পদক মানে খেলোয়াড়দের জন্য বিশেষ কিছু।'

আরও পড়ুন:
কাবাডি নিয়ে ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রীর হতাশা
কাবাডিতে চ্যাম্পিয়ন কুমিল্লা

শেয়ার করুন

ভারোত্তোলনের শেষ দিন পাঁচ রেকর্ড

ভারোত্তোলনের শেষ দিন পাঁচ রেকর্ড

নারীদের ৮৭ কেজি ওজন বিভাগে স্ন্যাচ, ক্লিন অ্যান্ড জার্ক ও মোট ওজনে রেকর্ড গড়েছেন বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর তানিয়া খাতুন। নারীদের উর্ধ্ব-৮৭ কেজি ওজন বিভাগে স্ন্যাচে রেকর্ড গড়েছেন বাংলাদেশ আনসারের সোয়াইবা রোকাইয়া।

বঙ্গবন্ধু ৯ম বাংলাদেশ গেমসের ভারোত্তোলন ইভেন্টের শেষ দিনে শুক্রবার নারী বিভাগে চার ও পুরুষ বিভাগে পাঁচ রেকর্ড হয়েছে।

নারীদের ৮৭ কেজি ওজন বিভাগে স্ন্যাচ, ক্লিন অ্যান্ড জার্ক ও মোট ওজনে রেকর্ড গড়েছেন বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর তানিয়া খাতুন। নারীদের উর্ধ্ব-৮৭ কেজি ওজন বিভাগে স্ন্যাচে রেকর্ড গড়েছেন বাংলাদেশ আনসারের সোয়াইবা রোকাইয়া।

পুরুষদের উর্ধ্ব-১০৯ কেজি ওজন বিভাগে স্ন্যাচ, ক্লিন অ্যান্ড জার্ক ও মোট ওজনে রেকর্ড গড়েছেন বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর ফরহাদ আলী। ১০৯ কেজি ওজন বিভাগের ক্লিন অ্যান্ড জার্ক ও মোট ওজনে রেকর্ড গড়েছেন সেনাবাহিনীর আব্দুল্লাহ আল মোমিন।

ভারোত্তোলনের ২০ ইভেন্টে সমান, ১০টি করে সোনা জিতেছে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী ও বাংলাদেশ আনসার।

৮৭ কেজি ওজন শ্রেণীতে তিন ক্যাটাগরিতে রেকর্ড গড়ে সোনা জয়ের পথে স্ন্যাচে ৬২, ক্লিন অ্যান্ড জার্কে ৭৬, মোট ১৩৮ কেজি তুলেছেন তানিয়া খাতুন। রুপা জয়ী বাংলাদেশ জেলের সাকেরা খাতুন স্ন্যাচে ৫৩, ক্লিন অ্যান্ড জার্কে ৬৩, মোট ১১৬ কেজি তুলেছেন। ব্রোঞ্জ জয়ী বাংলাদেশ আনসারের মিঞ্জু আক্তার স্ন্যাচে ৫১, ক্লিন অ্যান্ড জার্কে ৬৪, মোট ১১৫ কেজি তুলেছেন।

নারীদের উর্ধ্ব-৮৭ কেজি ওজন বিভাগে সোনা জয়ের পথে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর নাজনীন আক্তার মুন্নি স্ন্যাচে ৫৭, ক্লিন অ্যান্ড জার্কে ৭২, মোট ১২৯ কেজি তুলেছেন। বাংলাদেশ আনসারের সোয়াইবা রহমান রাফা স্ন্যাচে রেকর্ড ৫৭ কেজি, ক্লিন অ্যান্ড জার্কে ৭১, মোট ১২৮ কেজি তুলে রুপা জিতেছেন। ব্রোঞ্জ জয়ের পথে বাংলাদেশ জেলের মার্জিয়া আক্তার স্ন্যাচে ৫৪, ক্লিন অ্যান্ড জার্কে ৫৫, মোট ১০৯ কেজি তুলেছেন।

পুরুষদের উর্ধ্ব-১০৯ কেজি ওজন বিভাগে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর ফরহাদ আলী তিন ক্যাটাগরিতে রেকর্ড গড়ার পথে স্ন্যাচে ১২১, ক্লিন অ্যান্ড জার্কে ১৪৭, মোট ২৬৭ কেজি তুলেছেন। রুপা জয়ের পথে বাংলাদেশ আনসারের তায়েফুর রহমান স্ন্যাচে ১১০, ক্লিন অ্যান্ড জার্কে ১৪০, মোট ২৫০ কেজি তুলেছেন। ব্রোঞ্জ জয়ের পথে একই দলের সুদীপ্ত দাস স্ন্যাচে ১০০, ক্লিন অ্যান্ড জার্কে ১৩৮, মোট ২৩৮ কেজি তুলেছেন।

১০৯ কেজি ওজন বিভাগে সোনা জয়ের পথে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর আব্দুল্লাহ আল মোমিন স্ন্যাচে ১১৪, ক্লিন অ্যান্ড জার্কে রেকর্ড ১৫১, মোট ওজনে রেকর্ড ২৬৫ কেজি তুলেছেন। রুপা জয়ের পথে বাংলাদেশ আনসারের এমরান হোসেন স্ন্যাচে ১১৪, ক্লিন অ্যান্ড জার্কে ১৪৫ সহ মোট ২৫৯ কেজি তুলেছেন। ব্রোঞ্জ জয়ের পথে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ-এর মোজাহিদ ফকির স্ন্যাচে ৯৬, ক্লিন অ্যান্ড জার্কে ১২৫ মিলিয়ে মোট ২২১ কেজি তুলেছেন।

ভোরোত্তোলনের খেলা শেষে বাংলাদেশ আনসারের কোচ বিদ্যুৎ কুমার রায় বলেন, ‘বাংলাদেশ আনসার ও বাংলাদেশ সেনাবাহিনী খেলোয়াড়রা সমান সুযোগ-সুবিধাই পান। এ আসরে বাংলাদেশ আনসারের খেলোয়াড়রা প্রত্যাশার চেয়ে ভাল করেছেন। তার কারন টানা অনুশীলন। বাংলাদেশ অলিম্পিক এসোসিয়েশন ও বাংলাদেশ ভারোত্তোলন ফেডারেশনের সহায়তায় আমাদের খেলোয়াড়রা বছর জুড়েই অনুশীলনের মধ্যে থাকেন। ভারোত্তোলনে ভাল করতে হলে অনুশীলনের বিকল্প নেই।’

তায়কোয়ানডোতে মাসুদ ও মাসুমের স্বর্ণ জয়

বঙ্গবন্ধু ৯ম বাংলাদেশ গেমসে তায়কোয়ানন্ডো ইভেন্টে শুক্রবার স্বর্ণ জিতেছেন বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর মাসুদ পারভেজ ও বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের মাসুম খান।

সিনিয়র পুরুষ অনূর্ধ্ব-৭৪ কেজি ওজন শ্রেনিতে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের মাসুম খান ২০-১৭ স্কোরে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর মো. নাসির পারভেজকে হারিয়ে স্বর্ণ পদক জেতেন। এতে যৌথভাবে ব্রোঞ্জ পদক জেতেন বাংলাদেশ আনসার ও ভিডিপির মো: জাহিদুল ইসলাম এবং রাজশাহী জেলা ক্রীড়া সংস্থার আব্দুর রহিম।

সিনিয়র পুরুষ অনূর্ধ্ব-৮৭ কেজি ওজন শ্রেনিতে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের মো. রাসেল খানকে ২৫-১৫ স্কোরে সেনাবাহিনীর মো.মাসুদ পারভেজকে হারিয়ে স্বর্ন জেতেন। এতে যৌথভাবে ব্রোঞ্জ পদক জিতেছেন বাংলাদেশ আনসার ও ভিডিপির আলমগীর এবং সিরাজগঞ্জ জেলা ক্রীড়া সংস্থার মো. নয়ন।

আরও পড়ুন:
কাবাডি নিয়ে ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রীর হতাশা
কাবাডিতে চ্যাম্পিয়ন কুমিল্লা

শেয়ার করুন

রোইংয়ের দুই স্বর্ণই কেরানীগঞ্জের

রোইংয়ের দুই স্বর্ণই কেরানীগঞ্জের

রোইংয়ে স্বর্ণ জয়ের পর উদযাপনে আলী নগর রোইং ক্লাব। ছবি: সংগৃহীত

শুক্রবার রাজধানীর হাতিরঝিলে অনুষ্ঠিত রোইংয়ের পুরুষ ইভেন্টে আলী নগর রোইং ক্লাব ও নারীদের বিভাগে স্বর্ণ জিতেছে চুনকুটিয়া রোইং ক্লাব।

বঙ্গবন্ধু ৯ম বাংলাদেশ গেমসের রোইংয়ে পুরুষ ও মহিলা দুই বিভাগেই স্বর্ণ পদক জিতেছে কেরানীগঞ্জ।

শুক্রবার রাজধানীর হাতিরঝিলে অনুষ্ঠিত রোইংয়ের পুরুষ ইভেন্টে আলী নগর রোইং ক্লাব ও নারীদের বিভাগে স্বর্ণ জিতেছে চুনকুটিয়া রোইং ক্লাব।

নারীদের বিভাগে অংশগ্রহণকারী তিনটি দলই ঢাকার। রৌপ্য জিতেছে ইউনিভার্সেল রোইং ক্লাব ও ব্রোঞ্জ জিতেছে নিউ ইয়ং স্টার রোইং ক্লাব। নারীদের প্রতি নৌকায় বৈঠা হাতে ছিলেন ছয় জন করে রোয়ার।

স্বর্ণ জয়ী নারী দলের দলপতি চঞ্চলা রায় পদক পেয়ে সন্তুষ্টি প্রকাশ করে বলেন, অনুশীলনের সুযোগ পেলে আরও ভালো করতে পারতেন।

বাংলাদেশ রোইং ফেডারেশনের নির্বাহী সদস্য আজমেরী বেগম মুন্নি লকডাউনের মাঝে বঙ্গবন্ধুর নামে করা গেমস সফল হওয়ায় খুশি। রোইংয়ের ভবিষ্যৎ নিয়েও আশাবাদী তিনি।

পুরুষদের বিভাগে স্বর্ণ জয়ী আলী নগর রোইং ক্লাবের দলপতি মনির হোসেন বলেন, ‘করোনা শুরু হওয়ার পর গত দুবছর পানিতে বৈঠা হাতে নামা হয়নি। তারপরও ঐতিহাসিক এই গেমসে খেলতে পেরে সরকার এবং ফেডারেশনের কাছে কৃতজ্ঞ।’

আগামীতে আরো আরো বড় আসরে দেশের পতাকা হাতে খেলার স্বপ্ন দেখেন মনির।

পুরুষদের বিভাগে রৌপ্য জয় করেছে নিউ গাজী ক্লাব এবং ব্রোঞ্জ পেয়েছে বরিশাল রোইং ক্লাব। পুরুষ বিভাগে এক একটি নৈকায় বৈঠা হাতে ছিলেন ১০ জন করে রোয়ার।

রোইং পদক তালিকা

পুরুষ বিভাগ (অংশগ্রহণকারী দল ৫টি)

স্বর্ণ- আলী নগর রোইং ক্লাব

রৌপ্য- নিউ গাজী রোইং ক্লাব

ব্রোঞ্জ- বরিশাল রোইং ক্লাব

নারী বিভাগ (তিন দল)

স্বর্ণ- চুনকুটিয়া রোইং ক্লাব

রৌপ্য- ইউনিভার্সেল রোইং ক্লাব

ব্রোঞ্জ- নিউ ইয়ং স্টার রোইং ক্লাব

আরও পড়ুন:
কাবাডি নিয়ে ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রীর হতাশা
কাবাডিতে চ্যাম্পিয়ন কুমিল্লা

শেয়ার করুন

উর্মি-গৌরবের মাথায় ব্যাডমিন্টনের মুকুট

উর্মি-গৌরবের মাথায় ব্যাডমিন্টনের মুকুট

উর্মি ও গৌরব। ছবি: বিওএ

নারী এককে ২-১ সেটে বাংলাদেশ বাংলাদেশ বৃষ্টি খাতুনকে হারিয়ে স্বর্ণ জিতেছেন উর্মি। পুরুষ এককে সিলেটের গৌরব সিংহ ২-০ সেটে বাংলাদেশ আর্মির আল আমিন জুমারকে হারিয়ে স্বর্ণ জিতেছেন।

বঙ্গবন্ধু ৯ম বাংলাদেশ গেমসের ব্যাডমিন্টন ডিসিপ্লিনের নারী এককে স্বর্ণ জিতেছেন আনসারের উর্মি আক্তার। পুরুষ এককে চ্যাম্পিয়ন হয়েছেন সিলেট জেলার গৌরব সিংহ। বাংলাদেশ গেমসে প্রথমবার অংশ নিয়ে স্বর্ণ জিতেছেন এই দুই শাটলার।

বৃহস্পতিবার শহীদ তাজউদ্দিন আহমেদ ইনডোর স্টেডিয়ামে দুটি ফাইনাল ম্যাচ হয়।

নারী এককে ২-১ সেটে বাংলাদেশ বাংলাদেশ বৃষ্টি খাতুনকে হারিয়ে স্বর্ণ জিতেছেন উর্মি।

প্রথম সেটে ২১-২৩ পয়েন্টে জিতে লিড নেন বৃষ্টি। তবে ২১-১৩ ও ২১-১৪ পয়েন্টে পরের দুই সেট জিতে আনসারকে স্বর্ণ উপহার দেন উর্মি।

স্বর্ণ জিতে উর্মি বলেন, দ্বৈতে আমি স্বর্ণ হারিয়েছিলাম। আমার হয়তো ভাগ্যে ছিল না তাই পাইনি। তবে আমার মনে জেদ কাজ করেছে। তাছাড়া আমি সবশেষ র‌্যাঙ্কিংয়ে চ্যাম্পিয়ন হয়েছিলাম। সেই আত্মবিশ্বাস থেকে চ্যাম্পিয়ন হয়েছি। ১০১৬ সাল থেকে সিনিয়র খেললেও এটাই আমার সেরা সাফল্য।

‘এর আগে আমি জাতীয় চ্যাম্পিয়নশিপে কোয়ার্টার ফাইনাল পর্যন্ত খেলেছি। শাপলা-এলিনা আপু না থাকাতে আমার এই চ্যাম্পিয়নশিপটা সহজ হয়েছে। তবে তারা থাকলে টুর্নামেন্টটি আরো জমত।’

এদিকে পুরুষ এককে সিলেটের গৌরব সিংহ ২-০ সেটে বাংলাদেশ আর্মির আল আমিন জুমারকে হারিয়ে স্বর্ণ জিতেছেন।

প্রথম সেটে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই করে ২১-১৯ পয়েন্টে জয় পান ১৮ বছর বয়সী এই অ্যাথলেট। সিলেট এনাম একাডেমির এই শাটলার দ্বিতীয় সেট জিতেনেন ২১-১৬ পয়েন্টে।

এ আগে জাতীয় র‌্যাঙ্কিংয়ে দুবার চ্যাম্পিয়ন হওয়া গৌরব বলেন, ‘এসএ গেমসে কোয়ার্টার ফাইনাল খেলেছি। আমার বিশ্বাস ফেডারেশন যদি আমাদের দীর্ঘ মেয়াদি ট্রেনিংয়ের ব্যবস্থা করে তবে এসএ গেমসে পদক পাব।’

আরও পড়ুন:
কাবাডি নিয়ে ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রীর হতাশা
কাবাডিতে চ্যাম্পিয়ন কুমিল্লা

শেয়ার করুন

টেনিস এককের স্বর্ণ ইমনের, দ্বৈতে রঞ্জন-দিপু জুটি

টেনিস এককের স্বর্ণ ইমনের, দ্বৈতে রঞ্জন-দিপু জুটি

ছবি: সংগৃহীত

একক ফাইনালে ইমন ইসলাম ৬-৩, ৭-৫ সেটে মাদারীপুরের রুবেল হোসেনকে হারিয়েছেন ইমন। দ্বৈতে রঞ্জন রাম ও নর্ডিক ক্লাবের দিপু লাল জুটি ৭-৫, ৬-২ সেটে ঢাকা ইঞ্জিনিয়ার্স ক্লাবকে হারায়।

বাংলাদেশ অলিম্পিক অ্যাসোসিয়েশন (বিওএ) আয়োজিত ‘বঙ্গবন্ধু ৯ম বাংলাদেশ গেমস’ টেনিস এককে স্বর্ণ জিতেছেন রাজশাহী অ্যাডভোকেট আব্দুস সালাম টেনিস কমপ্লেক্সের ইমন ইসলাম। ছেলেদের দ্বৈত ইভেন্টে সোনা জিতেছেন দিপু লাল-রঞ্জন রাম জুটি।

টেনিস এককে রুপা জিতেছেন মাদারীপুরের রুবেল হোসেন। ব্রোঞ্জ পেয়েছেন ঢাকার বিপ্লব।

দ্বৈতে রুপা জিতেছেন আনোয়ার হোসেন-অমল রায় জুটি। এ ইভেন্টে ব্রোঞ্জ পেয়েছেন ফরহাদ-রোমান জুটি।

খেলা শেষে পুরস্কার বিতরণ করেন পুলিশের রাজশাহী রেঞ্জের ডিআইজি আব্দুল বাতেন, অতিরিক্ত ডিআইজি টিএম মোজাহিদুল ইসলাম, রাজশাহী মহানগর পুলিশের কমিশনার আবু কালাম সিদ্দিক।

বৃহস্পতিবার রাজশাহীর অ্যাডভোকেট আব্দুস সালাম টেনিস কমপ্লেক্সে একক ফাইনালে ইমন ইসলাম ৬-৩, ৭-৫ সেটে মাদারীপুরের রুবেল হোসেনকে হারিয়েছেন। তৃতীয় স্থান নির্ধারণী ম্যাচে ঢাকার গুলশান ক্লাবের বিপ্লব ৬-৪, ৬-৩ সেটে জাতীয় টেনিস কমপ্লেক্সের কাওছার আলীকে হারিয়েছেন।

ছেলেদের দ্বৈতের ফাইনালে ইন্টারন্যাশনাল ক্লাবের রঞ্জন রাম ও নর্ডিক ক্লাবের দিপু লাল জুটি ৭-৫, ৬-২ সেটে ঢাকা ইঞ্জিনিয়ার্স ক্লাবের অমল রায় ও জাতীয় টেনিস কমপ্লেক্সের জুয়েল রানা জুটিকে হারিয়েছেন।

এ ইভেন্টের স্থান নির্ধারণী ম্যাচে বিকেএসপির ফরহাদ ও রোমান জুটি ৬-৪, ৬-১ সেটে রাজশাহীর অ্যাডভোকেট আব্দুস সালাম টেনিস কমপ্লেক্সের রুমন ও টিংকু জুটিকে পরাজিত করে।

এর আগে বুধবার মিক্সড ডাবলসে স্বর্ণ জিতেছে রঞ্জন রাম-আফ্রানা ইসলাম প্রীতি জুটি। এ ইভেন্টে রুপা জিতেছে অমল রায়-সুস্মিতা সেন জুটি। ব্রোঞ্জ পদক পেয়েছেন রোমান-সুবর্ণা জুটি।

আরও পড়ুন:
কাবাডি নিয়ে ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রীর হতাশা
কাবাডিতে চ্যাম্পিয়ন কুমিল্লা

শেয়ার করুন