সিলেটে মাদকবিরোধী হাফ ম্যারাথন

সিলেটে মাদকবিরোধী হাফ ম্যারাথন

ম্যারাথনের শুরুতে অংশ নেয়া সকল প্রতিযোগিকে মাদক, জঙ্গি ও সন্ত্রাসবিরোধী শপথ পাঠ করান র‍্যাবের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (অপারেশনস) কর্নেল তোফায়েল মোস্তফা সরোয়ার।

নানা বয়সের হাজারও শৌখিন দৌড়বিদের অংশগ্রহণে সিলেটে আয়োজিত হয়েছে হাফ ম্যারাথন। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে মাদক, জঙ্গি ও সন্ত্রাসবিরোধী এই হাফ ম্যারাথনের আয়োজন করে র‍্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‍্যাব) ও সিলেট রানার্স কমিউনিটি।

‘র‍্যাব ফোর্সেস সিলেট হাফ ম্যারাথন ২০২১’ নামে এই প্রতিযোগিতা নগরের কিনব্রিজ এলাকা থেকে শুরু হয়ে লাক্কাতুরা এলাকার সিলেট ক্রিকেট স্টেডিয়ামে গিয়ে শেষ হয়।

প্রতিযোগিতায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী একে এম আব্দুল মোমেন।

ম্যারাথনের শুরুতে অংশ নেয়া সকল প্রতিযোগিকে মাদক, জঙ্গি ও সন্ত্রাসবিরোধী শপথ পাঠ করান র‍্যাবের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (অপারেশনস) কর্নেল তোফায়েল মোস্তফা সরোয়ার।

এসময় খেলাধুলা ও শরীর চর্চায় উদ্বুদ্ধ হয়ে শরীর ও মনকে সুস্থ রেখে ২০৪১ সালের উন্নত বাংলাদেশ গড়ে তোলার অঙ্গীকার করেন অংশগ্রহণকারী তরুণ-তরুণীরা।

এছাড়াও অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন, র‍্যাবের মহাপরিচালক (ডিজি) চৌধুরী আবদুল্লাহ আল মামুন, সিলেট জেলা প্রশাসক এম কাজী এমদাদুল ইসলাম সহ প্রশাসনের বিভিন্ন উচ্চ পদস্থ কর্মকর্তা ও রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ।

সিলেটের স্কুল, কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ছাড়াও বিভিন্ন শ্রেণি পেশার মানুষ ম্যারাথনে অংশগ্রহণ করে বলে জানায় র‍্যাব। মাদকবিরোধী কার্যক্রমের অংশ হিসেবে এই প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়।

আরও পড়ুন:
স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস: প্রতি বছর হবে ঢাকা ম্যারাথন
দুই শতাধিক দৌড়বিদের অংশগ্রহণে ঢাকা ম্যারাথন

শেয়ার করুন

মন্তব্য

রোমানকে ছাপিয়ে আর্চারিতে তিন স্বর্ণ আলিফের

রোমানকে ছাপিয়ে আর্চারিতে তিন স্বর্ণ আলিফের

তিনটি স্বর্ণ জেতেন বিকেএসপির আলিফ

টুর্নামেন্টের সর্বোচ্চ পাঁচটি স্বর্ণ ও ‍দুটি সিলভার মেডেল পেয়ে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে ঢাকা আর্মি আর্চারি ক্লাব।

ব্রোঞ্জ জিতেই জাতীয় আর্চারি চ্যাম্পিয়নশিপের যাত্রা থেমেছে দেশসেরা তীরন্দাজ রোমান সানার। তাকে ছাপিয়ে এবার চ্যাম্পিয়নশিপের সব আলো যেন আব্দুর রহমান আলিফকে ঘিরে। সর্বোচ্চ তিনটি স্বর্ণ জিতেছেন বিকেএসপির এই তীরন্দাজ।

আর টুর্নামেন্টের সর্বোচ্চ পাঁচটি স্বর্ণ ও ‍দুটি সিলভার মেডেল পেয়ে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে ঢাকা আর্মি আর্চারি ক্লাব।

বৃহস্পতিবার কক্সবাজারের শেখ কামাল আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে স্বর্ণ নির্ধারণের ম্যাচগুলো হয়।

রিকার্ভ পুরুষ একক ইভেন্টে চ্যাম্পিয়ন হন বিকেএসপির আব্দুর রহমান আলিফ। বাংলাদেশ পুলিশের হাকিম আহমেদ রুবেলকে ৭-৩ সেট পয়েন্টের ব্যবধানে হারান তিনি।

আর রিকার্ভ মহিলা একক ইভেন্টে ঢাকা আর্মি দলের মেহেনাজ আক্তার মনিরা ৬-০ সেট পয়েন্টের ব্যবধানে মোসাম্মৎ নাজমিন খাতুনকে হারিয়ে স্বর্ণ জিতেছেন।

রিকার্ভ পুরুষ দলগত ইভেন্টে বিকেএসপি আব্দুর রহমান আলিফ ও প্রদীপ্ত চাকমা ৬-২ সেট পয়েন্টের ব্যবধানে ঢাকা জেলা ক্রীড়া সংস্থার আফজাল হোসেন, সাগর ইসলাম ও মিশাদ প্রধানকে হারিয়ে স্বর্ণ জেতে।

রিকার্ভ মহিলা দলগত ইভেন্টে ঢাকা আর্মির মেহেনাজ আক্তার মনিরা, নাসরিন আক্তার ও রাবেয়া আক্তার ৫-৪ সেট পয়েন্টের ব্যবধানে বিকেএসপির দিয়া সিদ্দিকী, ফাহমিদা সুলতানা নিশা ও উম্যা চিং মার্মাকে হারিয়ে স্বর্ণ জেতেন।

রিকার্ভ মিশ্র দলগত ইভেন্টে বিকেএসপির আব্দুর রহমান আলিফ ও দিয়া সিদ্দিকী ৫-৪ সেট পয়েন্টের ব্যবধানে বাংলাদেশ পুলিশের মোহাম্মদ তামিমুল ইসলাম ও বিউটি রায়কে হারিয়ে স্বর্ণ জেতেন।

রিকার্ভ মিশ্র দলগত ইভেন্টে বাংলাদেশ আনসারের শাকিব মোল্লা ও মোসাম্মৎ নাজমিন খাতুন ৫-৪ সেট পয়েন্টের ব্যবধানে ঢাকা জেলার সাগর ইসলাম ও রজনী আক্তারকে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন হয়।

এ দিকে কম্পাউন্ড পুরুষ একক ইভেন্টে বাংলাদেশ আনসারের ঐশ্চর্য রহমান ১৪০-১৩৬ স্কোরের ব্যবধানে বিকেএসপির হিমু বাছাড়কে হারিয়ে স্বর্ণ জেতেন। কম্পাউন্ড মহিলা একক ইভেন্টে ঢাকা আর্মির সুস্মিতা বণিক ১৪৩-১৪১ স্কোরের ব্যবধানে একই দলের রোকসানা আক্তারকে হারিয়ে স্বর্ণ জেতেন।

কম্পাউন্ড পুরুষ দলগত ইভেন্টে বাংলাদেশ পুলিশের অসীম কুমার দাস, মো. আশিকুজ্জামান ও ভানরুম বম ২২৪-২১৬ স্কোরের ব্যবধানে ঢাকা আর্মির জাবেদ আলম, মিঠু রহমান ও সোহেল রানাকে হারিয়ে স্বর্ণ জেতেন।

কম্পাউন্ড মহিলা দলগত ইভেন্টে স্বর্ণ জেতেন ঢাকা আর্মির রোকসানা আক্তার, সুস্মিতা বনিক ও তানিয়া রীমা এবং কম্পাউন্ড মিশ্র দলগত ইভেন্টে স্বর্ণ জেতেন ঢাকা আর্মির রোকসানা আক্তার ও মিঠু রহমান।

কম্পাউন্ড মিশ্র দলগত ইভেন্টে স্বর্ণ জেতেন বাংলাদেশ আনসারের ঐশ্চর্য্য রহমান ও বন্যা আক্তার।

বিকালে টুর্নামেন্টের সমাপণী ও পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠানে বিজয়ীদের মধ্যে পুরস্কার বিতরণ করেন যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব আব্দুল করিম এনডিসি।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন কক্সবাজার জেলা প্রশাসক মামুনুর রশীদ, বাংলাদেশ আর্চারি ফেডারেশনের সভাপতি লেফট্যানেন্ট জেনারেল মো. মইনুল ইসলাম (অব:), সহ-সভাপতি আনিসুর রহমান দিপু, ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক কাজী রাজীব উদ্দীন আহমেদ চপল, প্রতিযোগিতা ও মাঠ ব্যবস্থাপনা কমিটির আহ্বায়ক রশিদুজ্জামান সেরনিয়াবাত।

আরও পড়ুন:
স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস: প্রতি বছর হবে ঢাকা ম্যারাথন
দুই শতাধিক দৌড়বিদের অংশগ্রহণে ঢাকা ম্যারাথন

শেয়ার করুন

২১ কোটি টাকায় হচ্ছে বীরশ্রেষ্ঠ রুহুল আমিন স্টেডিয়াম

২১ কোটি টাকায় হচ্ছে বীরশ্রেষ্ঠ রুহুল আমিন স্টেডিয়াম

বুধবার স্টেডিয়ামের নির্মাণ কাজের উদ্বোধন করেছেন যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী মো. জাহিদ আহসান রাসেল

আধুনিক এই স্টেডিয়ামটিতে ব্যাডমিন্টন, বাস্কেটবলসহ সকল ধরনের ইনডোর খেলার ব্যবস্থা থাকবে। স্টেডিয়ামটিতে দর্শক আসন সংখ্যা রয়েছে প্রায় ৫ শতাধিক। এ ছাড়া স্টেডিয়ামটিতে ফিটনেস ঠিক রাখার জন্য জিমনেসিয়ামও থাকছে।

কক্সবাজারে প্রায় ২১ কোটি টাকায় নির্মিত হচ্ছে বীরশ্রেষ্ঠ রুহুল আমিন ইনডোর স্টেডিয়াম। যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন ও জাতীয় ক্রীড়া পরিষদের তত্ত্বাবধানে নির্মিত হচ্ছে এই স্টেডিয়াম। বুধবার স্টেডিয়ামের নির্মাণ কাজের উদ্বোধন করেছেন যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী মো. জাহিদ আহসান রাসেল।

এ সময় তিনি স্টেডিয়ামের অধিকতর উন্নয়ন কাজেরও উদ্বোধন করেন।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রী বলেন, ‘কক্সবাজারের পর্যটনকে বিকশিত করতে স্পোর্টসকে কাজে লাগাতে হবে। এ জন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ব্যক্তিগত উদ্যোগে এখানে শেখ কামাল আন্তর্জাতিক ক্রিকেট নির্মাণের উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে।

‘স্টেডিয়ামের নকশা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী অনুমোদন দিয়েছেন। এর পাশেই আরও একটি আন্তর্জাতিক ফুটবল স্টেডিয়াম নির্মাণ করা হবে। সেটির কাজ আমরা করেছি। আমরা বিশ্ব দরবারে কক্সবাজারকে স্পোর্টস টুরিজমের একটি হাব হিসেবে তৈরি করাতে চাই।’

আধুনিক এই স্টেডিয়ামটিতে ব্যাডমিন্টন, বাস্কেটবলসহ সকল ধরনের ইনডোর খেলার ব্যবস্থা থাকবে। স্টেডিয়ামটিতে দর্শক আসন সংখ্যা রয়েছে প্রায় ৫ শতাধিক। এ ছাড়া স্টেডিয়ামটিতে ফিটনেস ঠিক রাখার জন্য জিমনেসিয়ামও থাকছে।

মূল ভবন নির্মাণে ব্যয় হবে ১৩ কোটি ৫৮ লাখ টাকা। আর স্টেডিয়ামের অধিকতর উন্নয়ন কাজে ব্যয় হবে ৭ কোটি ৩২ লাখ টাকা। এ কাজের মধ্যে রয়েছে নতুন গ্যালারী নির্মাণ সহ বাউন্ডারি ওয়াল, অভ্যন্তরীর ড্রেনেজ ব্যবস্থা, ওয়াকওয়ে ও মাঠের উন্নয়ন।

আরও পড়ুন:
স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস: প্রতি বছর হবে ঢাকা ম্যারাথন
দুই শতাধিক দৌড়বিদের অংশগ্রহণে ঢাকা ম্যারাথন

শেয়ার করুন

ব্রোঞ্জ জিতলেন রোমান সানা

ব্রোঞ্জ জিতলেন রোমান সানা

এবার টোকিও অলিম্পিকে সরাসরি সুযোগ পাওয়া প্রথম বাংলাদেশি রোমান সানা। ছবি: ফাইল ছবি

রিকার্ভ পুরুষ একক ইভেন্টে মো: রোমান সানা (বাংলাদেশ আনসার) ৬-৪ সেট পয়েন্টের ব্যবধানে ঢাকা আর্মি আর্চারি ক্লাবের মো: আশিকুর রহমানকে হারিয়ে ব্রোঞ্জ জেতেন।

টোকিও অলিম্পিকে সরাসরি খেলার সুযোগ পাওয়া একমাত্র ক্রীড়াবিদ রোমান সানার পারফরম্যান্সে অবনতি হয়েছে। জাতীয় চ্যাম্পিয়নশিপে স্বর্ণ খুইয়ে ব্রোঞ্জ জিতেছেন এই দেশসেরা তীরন্দাজ।

কক্সবাজারস্থ শেখ কামাল আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে বুধবার বঙ্গবন্ধু ১২ তম চ্যাম্পিয়নশিপের ২য় দিনে এলিমিনেশন রাউন্ডে আটটি ব্রোঞ্জ মেডেল ম্যাচ হয়।

রিকার্ভ পুরুষ একক ইভেন্টে রোমান সানা (বাংলাদেশ আনসার) ৬-৪ সেট পয়েন্টের ব্যবধানে ঢাকা আর্মি আর্চারি ক্লাবের মো: আশিকুর রহমানকে হারিয়ে ব্রোঞ্জ জেতেন।

রিকার্ভ মহিলা একক ইভেন্টে দিয়া সিদ্দিকী (বিকেএসপি) ৬-০ সেট পয়েন্টের ব্যবধানে বাংলাদেশ পুলিশের মোসাম্মৎ ইতি খাতুনকে হারিয়ে ব্রোঞ্জ জেতেন।

কম্পাউন্ড পুরুষ একক ইভেন্টে পুলিশের মোহাম্মদ আশিকুজ্জামান ১৪৪-১৪২ স্কোরের ব্যবধানে হারান অসীম কুমার দাসকে। কম্পাউন্ড মহিলা একক ইভেন্টে পুলিশের রিতু আক্তার ১৩৬-১৩৫ স্কোরের ব্যবধানে বন্যা আক্তার হারিয়ে ব্রোঞ্জ পান।

রিকার্ভ পুরুষ দলগত ইভেন্টে বাংলাদেশ পুলিশ ৬-২ সেট পয়েন্টের ব্যবধানে বাংলাদেশ আনসারকে হারিয়ে ব্রোঞ্জ জেতে। রিকার্ভ মহিলা দলগত ইভেন্টেও ব্রোঞ্জ জেতে বাংলাদেশ পুলিশ। বাংলাদেশ আনসারকে ৫-৪ সেট পয়েন্টের ব্যবধানে হারিয়েছে তারা।

এ ছাড়া কম্পাউন্ড পুরুষ দলগত ইভেন্টে বিকেএসপি ২২২-২১৮ স্কোরের ব্যবধানে বাংলাদেশ আনসারকে পরাজিক করে ব্রোঞ্জ এবং কম্পাউন্ড মহিলা দলগত ইভেন্টে বাংলাদেশ আনসার ২২২-২১৫ স্কোরের ব্যবধানে এএসপিটিএস আর্চারি ক্লাবকে হারিয়ে করে ব্রোঞ্জ মেডেল জয় লাভ করে।

আগামীকাল বিকেল চারটায় চ্যাম্পিয়নশিপের সমাপনী অনুষ্ঠান ও পুরস্কার বিতরণ করা হবে। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে বিজয়ীদের মধ্যে পুরস্কার বিতরণ করবেন যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী মো: জাহিদ আহসান রাসেল।

আরও পড়ুন:
স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস: প্রতি বছর হবে ঢাকা ম্যারাথন
দুই শতাধিক দৌড়বিদের অংশগ্রহণে ঢাকা ম্যারাথন

শেয়ার করুন

অ্যাথলেটিকসে ফেরার পথ সহজ হলো রাশিয়ার

অ্যাথলেটিকসে ফেরার পথ সহজ হলো রাশিয়ার

দেশটির জন্য প্রস্তুত সংস্কার পরিকল্পনায় অনুমোদন দিয়েছে ওয়ার্ল্ড অ্যাথলেটিকস। আগামী কয়েকবছরে দেশটির সামনে বেশ কিছু লক্ষ্যমাত্রা রাখা হয়েছে। যার মধ্যে অন্যতম ডোপ টেস্টিং এর বিস্তার।

আন্তর্জাতিক অ্যাথলেটিকসে ফেরার সম্ভাবনা উজ্জ্বল হয়েছে রাশিয়ার। দেশটির জন্য প্রস্তুত সংস্কার পরিকল্পনায় অনুমোদন দিয়েছে ওয়ার্ল্ড অ্যাথলেটিকস। আগামী কয়েকবছরে দেশটির সামনে বেশ কিছু লক্ষ্যমাত্রা রাখা হয়েছে। যার মধ্যে অন্যতম ডোপ টেস্টিং এর বিস্তার।

ওয়ার্ল্ড অ্যাথলেটিকসের সভাপতি লর্ড কো এই সংস্কার পরিকল্পনাকে ‘আস্থা পুনস্থাপনের রোডম্যাপ’ উল্লেখ করে বিবিসি স্পোর্টকে বলেন, ‘এখানেই শেষ নয়। একটা দীর্ঘ যাত্রার শুরু। রাশিয়ান অ্যাথলেটিকস ফেডারেশন (রুসাফ) কে আস্থা ফিরে পাওয়ার জন্য এখন প্রচুর কাজ করতে হবে।’

অ্যাথলেটিকসে রাশিয়ার ফিরে আসার কোনো তারিখ নির্ধারণ করা হয়নি। তবে দেশটির অ্যাথলেটিকস প্রশাসন, তহবিল, অ্যান্টি-ডোপিং ব্যবস্থা ও ক্রীড়াবিদদের শিক্ষার বিষয়ে সময়সীমা নির্ধারণ করা হয়েছে যেটি পর্যবেক্ষণের আওতায় থাকবে।

যে পরিবর্তনগুলো চাওয়া হয়েছে তার মধ্যে রয়েছে হুইসলব্লোয়ারদের উৎসাহ দেয়ার নীতিমালা প্রনয়ণ, পরিবর্তনের বিরুদ্ধে প্রতিরোধকারী বিভাগগুলোকে শাস্তিমূলক ব্যবস্থার আওতায় আনা ও দেশের খেলাধুলা কীভাবে চলছে তা নিয়ে ক্রীড়াবিদদের মতামত দেয়ার সুযোগ বৃদ্ধি করা।

ওয়ার্ল্ড অ্যাথলেটিকসের ৩১ পাতার সংস্কার প্রস্তাবনা প্রতিবেদনটিতে বলা হয় রুসাফের দৃঢ় বিশ্বাস তারা লক্ষ্যে পৌঁছাতে পারবে তবে স্থায়ী পরিবর্তন আনতে অনেক সময় লেগে যাবে।

বিশ্ব অ্যাথলেটিকসের নিয়ন্ত্রক সংস্থাটি আরও জানায় ডোপিং পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েছেন তারা টোকিও অলিম্পিকসে অংশ নিতে পারবেন কি না সেই সিদ্ধান্ত নেয়া হবে কাউন্সিল সভায়। ওয়ার্ল্ড অ্যাথলেটিকস কাউন্সিলের সভা বসছে ১৭ ও ১৮ মার্চ।

ওয়ার্ল্ড অ্যান্টি ডোপিং এজেন্সির (ওয়াডা) প্রতিবেদনের ভিত্তিতে ২০১৫ সালে রাশিয়াকে আন্তর্জাতিক অ্যাথলেটিকসের সব আসর থেকে নিষিদ্ধ করে ওয়ার্ল্ড অ্যাথলেটিকস। ওয়াডার প্রতিবেদনে বলা হয় দেশটি অ্যাথলিটদের সাফল্যের জন্য ড্রাগ ব্যবহার করতে উৎসাহী করেছে।

আরও পড়ুন:
স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস: প্রতি বছর হবে ঢাকা ম্যারাথন
দুই শতাধিক দৌড়বিদের অংশগ্রহণে ঢাকা ম্যারাথন

শেয়ার করুন

ফেডেরারের বিশ্বরেকর্ডে ভাগ বসালেন জকোভিচ

ফেডেরারের বিশ্বরেকর্ডে ভাগ বসালেন জকোভিচ

সোমবার সবশেষ প্রকাশিত এটিপি র‍্যাংকিংয়ে এক নম্বরে আছেন ১৮টি স্ল্যাম জয়ী জকোভিচ। এতে করে ফেডেরারের মোট ৩১০ সপ্তাহ শীর্ষে থাকার রেকর্ড ছুঁয়ে দিলেন তিনি।

গ্র্যান্ড স্ল্যাম সংখ্যায় এখনও রজার ফেডেরারের চেয়ে দুটি শিরোপা পেছানো নোভাক জকোভিচ। তবে সবচেয়ে বেশি সময় র‍্যাংকিংয়ের শীর্ষে থাকার রেকর্ডে ঠিকই ফেডেরারের সঙ্গে ভাগ বসিয়েছেন এই সার্বিয়ান তারকা।

সোমবার সবশেষ প্রকাশিত এটিপি র‍্যাংকিংয়ে এক নম্বরে আছেন ১৮টি স্ল্যাম জয়ী জকোভিচ। এতে করে ফেডেরারের মোট ৩১০ সপ্তাহ শীর্ষে থাকার রেকর্ড ছুঁয়ে দিলেন তিনি।

তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় বিবিসি স্পোর্টকে এই টেনিস গ্রেট জানান আপাতত গ্র্যান্ড স্ল্যাম টুর্নামেন্টের দিকে নজর দেবেন তিনি।

‘সবচেয়ে বেশি সময় এক নম্বর থাকার ঐতিহাসিক অর্জনের পর কিছুটা স্বস্তি বোধ করছি। এখন আমার সমস্ত মনোযোগ স্ল্যাম টুর্নামেন্টগুলোতে দিতে পারব।’

সবশেষ র‍্যাংকিংয়ে ১২,০৩০ পয়েন্ট নিয়ে সবার উপরে আছেন জকোভিচ। নাদাল আছেন দুই নম্বরে। তার পয়েন্ট ৯,৮৫০। জকোভিচের কাছে অস্ট্রেলিয়ান ওপেনের ফাইনালে হেরে যাওয়া রাশান তারকা দানিল মেদভেদেভ আছেন তিনে। তার সংগ্রহ ৯,৭৩৫ পয়েন্ট।

সর্বকালের সেরাদের তালিকায় ৩১০ সপ্তাহ শীর্ষে থাকার রেকর্ডের এক নম্বরে এখন জকোভিচ ও ফেডেরার। দুইয়ে আছেন সাবেক আমেরিকান তারকা পিট স্যাম্প্রাস। তিনি মোট ২৮৬ সপ্তাহ এক নম্বরে ছিলেন।

নারী ও পুরুষ একক মিলিয়ে মোট র‍্যাংকিংয়ের শীর্ষে হিসেবে এখনও সবার ধরা ছোঁয়ার বাইরে স্টেফি গ্রাফ। জার্মান কিংবদন্তি ক্যারিয়ারের মোট ৩৭৭ সপ্তাহ এক নম্বরে ছিলেন।

আরও পড়ুন:
স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস: প্রতি বছর হবে ঢাকা ম্যারাথন
দুই শতাধিক দৌড়বিদের অংশগ্রহণে ঢাকা ম্যারাথন

শেয়ার করুন

উডসের লাল-কালোয় গলফাররা

উডসের লাল-কালোয় গলফাররা

ডসের দ্রুত আরোগ্য কামনায় বিশ্বজুড়ে গলফাররা লাল গলফ শার্ট পরে কোর্সে নামেন রোববার। ক্যারিয়ারে গলফের ১৫টি মেজর ওপেন টুর্নামেন্ট জেতা উডসের প্রিয় পোশাক ছিল কালো কলারের লাল টি-শার্ট। যেটি পরে অধিকাংশ সময় তিনি নামতেন কোর্সে।

গত সপ্তাহে লস অ্যাঞ্জেলেসে এক সড়ক দুর্ঘটনায় মারাত্মক আহত হন টাইগার উডস। অস্ত্রোপচারের পর এই কিংবদন্তি গলফার আছেন পুনর্বাসনে। উডসের দ্রুত আরোগ্য কামনায় বিশ্বজুড়ে গলফাররা লাল গলফ শার্ট পরে কোর্সে নামেন রোববার।

ক্যারিয়ারে গলফের ১৫টি মেজর ওপেন টুর্নামেন্ট জেতা উডসের প্রিয় পোশাক ছিল কালো কলারের লাল টি-শার্ট। যেটি পরে অধিকাংশ সময় তিনি নামতেন কোর্সে।

ফ্লোরিডার ডাব্লিউজিসি-ওয়ার্কডে চ্যাম্পিয়নশিপে বর্তমানে বিশ্ব র‍্যাংকিংয়ের আট নম্বর ও সাবেক ওয়ার্ল্ড নাম্বার ওয়ান ররি ম্যাকেলরয় উডসের মতো কালো কলারের লাল টি-শার্ট পরে কোর্সে নামেন।

ম্যাকেলরয়ের মতো একই রঙ্গের টি-শার্ট পড়ে খেলেন টমি ফ্লিটউড, প্যাট্রিক রিড ও টোনি ফিনাউ এর মতো শীর্ষ তারকারা।

দিনের খেলা শেষে ম্যাকেলরয় জানান তারা সবাই উডসের পাশে আছেন।

‘এটা আমাদের পক্ষ উডসকে জানানো যে আমরা সবাই তার কথা ভাবছি ও তাকে সমর্থন করছি,’ বলেন ৩১ বছর বয়সী এই আইরিশ গলফার।

সাবেক বিশ্বসেরা ফিল মিকেলসন ও বিশ্বসেরা সাবেক নারী গলফার আনিকা সরেনস্ট্যামও একই রকম লাল টি-শার্ট পরে কোর্সে নামেন।

সতীর্থ গলফারদের এমন পদক্ষেপ ছুঁয়ে গেছে উডসের হৃদয়। সোমবার এক টুইটে তিনি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন সবার প্রতি।

‘টিভি খুলে যখন আজকে লাল টি-শার্টগুলো দেখেছি তখন কেমন লেগেছে আমার এটা ভাষায় প্রকাশ করা সম্ভব না। সব গলফার ও ফ্যানকে বলতে চাই, আপনারা আসলেই আমাকে এই কঠিন সময় পার হতে সাহায্য করছেন।’

আরও পড়ুন:
স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস: প্রতি বছর হবে ঢাকা ম্যারাথন
দুই শতাধিক দৌড়বিদের অংশগ্রহণে ঢাকা ম্যারাথন

শেয়ার করুন

করোনায় আক্রান্ত হয়ে হাসপাতাল ভর্তি হকির কোচ হারুন

করোনায় আক্রান্ত হয়ে হাসপাতাল ভর্তি হকির কোচ হারুন

ফাইল ছবি

শুক্রবার কোভিড-টেস্টের ফলে পজিটিভ ধরা পড়ে তার। শারীরিক অবস্থার অবনতি হতে থাকলে গতকাল শনিবার তাকে রাজধানীর একটি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এখন সুস্থবোধ করছেন কোচ হারুন।

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে জাতীয় হকি দলের প্রধান কোচ ও সাবেক অধিনায়ক মাহবুব হারুন।

শুক্রবার কোভিড-টেস্টের ফলে পজিটিভ ধরা পড়ে তার। শারীরিক অবস্থার অবনতি হতে থাকলে গতকাল শনিবার তাকে রাজধানীর একটি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

শারীরিকভাবে এখন সুস্থবোধ করছেন কোচ হারুন।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ঢাকা আবাহনী ক্লাবের সাবেক হকি খেলোয়াড় এহসান রানা।

বলেন, ‘শুক্রবার তার করোনা পজিটিভ রেজাল্ট আসে এবং অবস্থা একটু খারাপের দিকে গেলে শনিবার সকালে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।’

শারীরিক পরিস্থিত উন্নতির দিকে উল্লেখ করে এহসান রানা বলেন, ‘আমি দেখে এসেছি, হারুন ভাইয়ের সঙ্গে কথাও বলেছি। তার ফুসফুসে একটু পানি জমেছিল। চিকিৎসা চলছে। অবস্থা উন্নতির দিকেই আছে।’

এ বছরের মাঝামাঝি সময়ে ঢাকায় হওয়ার কথা এশিয়ান চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির আসর। আয়োজক হিসেবে এই আসরে অংশ নেবে বাংলাদেশ। এই বড় টুর্নামেন্টকে সামনে রেখে মাহবুব হারুনকে জাতীয় দলের কোচ নিযুক্ত করেছে বাংলাদেশ হকি ফেডারেশন (বাহফে)। তিনি সুস্থ হলে জাতীয় খেলোয়াড়দের নিয়ে প্রস্তুতি শুরু করার কথা বাংলাদেশের।

আরও পড়ুন:
স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস: প্রতি বছর হবে ঢাকা ম্যারাথন
দুই শতাধিক দৌড়বিদের অংশগ্রহণে ঢাকা ম্যারাথন

শেয়ার করুন

ad-close 103.jpg