রক্তের ফোঁটা নেই ‘রক্তধারায়’

রক্তের ফোঁটা নেই ‘রক্তধারায়’

বড়স্টেশন মোলহেডের কেয়ারটেকার হোসেন আলী বলেন, ‘২৬ মে ঘূর্ণিঝড়ের সময় রক্তধারার তিনটি রক্তের ফোঁটা থেকে একটি বাতাসে নিচে পড়ে যায়। আমি তা সংরক্ষণ করে রেখে দিয়েছি।’

চাঁদপুরে মহান মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম স্মৃতিবিজড়িত স্থান বড়স্টেশন মোলহেডের স্মৃতিসৌধ ‘রক্তধারা’। স্বাধীনতা যুদ্ধের রক্তাক্ত স্মৃতিস্মরণে এখানে ছিল তিনটি ঝুলন্ত রক্তের ফোঁটার আকৃতি। গত মে মাসে ঘূর্ণিঝড় ইয়াসের কবলে এর একটি পড়ে যায়।

এরপর প্রায় এক মাস পার হলেও স্মৃতিসৌধটি সংস্কারে নেয়া হয়নি কোনো উদ্যোগ। এ নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন স্থানীয় বীর মুক্তিযোদ্ধারা। তবে প্রশাসন জানিয়েছে, অচিরেই স্মৃতিস্তম্ভটি সংস্কার করা হবে।

বীর মুক্তিযোদ্ধারা জানান, স্বাধীনতাযুদ্ধে চাঁদপুরে পাকিস্তানি সেনাদের গড়া নির্যাতনকেন্দ্রের অন্যতম ছিল মোলহেডে। পদ্মা, মেঘনা ও ডাকাতিয়া নদীর এ মোহনায় চাঁদপুরের স্বাধীনতাকামীদের ধরে নিয়ে পাকিস্তানি বাহিনী পাশবিক নির্যাতন চালাত।

অসংখ্য নারী-পুরুষকে নির্যাতনের পর হাত-পা বেঁধে জীবন্ত বা মৃত অবস্থায় মেঘনা ও ডাকাতিয়া নদীতে ফেলে দেয়ার সাক্ষী এই এলাকা। স্থানীয় বীর মুক্তিযোদ্ধা ও তরুণ প্রজন্মের দাবির ভিত্তিতে সেই স্মৃতি রক্ষায় ২০১১ সালের তৎকালীন জেলা প্রশাসক প্রিয়তোশ সাহা ‘রক্তধারা’ নির্মাণের উদ্যোগ নেন।

তারা আরও জানান, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা স্মৃতিসৌধটি উদ্বোধন করেন। এর স্থপতি চঞ্চল কর্মকার। স্মৃতিসৌধটিতে টেরাকোটার ম্যুরালে আঁকা হয়েছে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভাষণসহ মুক্তিযুদ্ধের ঘটনাবলির চিত্র।

বীর মুক্তিযোদ্ধাদের দাবি, স্বাধীনতার স্মৃতিস্তম্ভগুলো ঠিকভাবে সংরক্ষণ করা না হলে নতুন প্রজন্মের কাছে অজানাই থেকে যাবে মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস। অচিরেই তাই এটি সংস্কারের দাবি জানান তারা।

বড়স্টেশন মোলহেডের কেয়ারটেকার হোসেন আলী বলেন, ‘২৬ মে ঘূর্ণিঝড়ের সময় রক্তধারার তিনটি রক্তের ফোঁটা থেকে একটি বাতাসে নিচে পড়ে যায়। আমি তা সংরক্ষণ করে রেখে দিয়েছি।’

রক্তের ফোঁটা নেই ‘রক্তধারায়’

চাঁদপুর জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার যুদ্ধাহত এমএ ওয়াদুদ বলেন, ‘আসলে এটি হতাশাজনক। শুধু চাঁদপুরেই নয়, দেশের সব স্থানেই মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিসৌধগুলো যথাযথভাবে সংরক্ষণ করা হচ্ছে না। আমাদের জীবদ্দশাতেই যদি এই অবস্থা হয়, তাহলে মৃত্যুর পরে কী হবে, তা তো বুঝতেই পারছি।’

তিনি জানান, বড়স্টেশন মোলহেডটি ছিল চাঁদপুরের সবচেয়ে বড় বদ্ধভূমি। অনেক মুক্তিযোদ্ধা ও স্বাধীনতাকামীকে রাজাকারদের সহায়তায় এখানে নির্যাতন করে হত্যা করে পাকিস্তানি সেনারা। ট্রেন ভর্তি মানুষ নদীতে ফেলেও হত্যা করেছে। মুক্তিযুদ্ধের অনেক স্মৃতি এই স্থানের সঙ্গে জড়িয়ে আছে।

বড়স্টেশনে ঘুরতে আসা লাবণী আক্তার বলেন, রক্তধারা স্মৃতিস্তম্ভটি আমাদের জন্য অত্যন্ত মূলবান। আমাদের ছেলে-মেয়েরা এর মাধ্যমে মুক্তিযোদ্ধাদের আত্মত্যাগ ও বীরত্বের কথা জানতে পারে। শুধু তা-ই নয়, জেলার বাইরের মানুষ এখানে ঘুরতে এসে চাঁদপুরের মুক্তিযুদ্ধের অনেক ইতিহাস সম্পর্কে জানতে পারে।

চাঁদপুর পৌরসভার প্যানেল মেয়র ফরিদা ইলিয়াস বলেন, ‘রক্তধারা স্মৃতিসৌধটি যে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে, তা আমি জানতাম না। কেয়ারটেকারও এ ব্যাপারে আমাকে কিছুই জানায়নি।

‘আমি আপনার কাছ থেকে জানতে পেরেছি। বিষয়টি এখনই মেয়রকে জানাব এবং দ্রুত সংস্কারের ব্যবস্থা করব।

জেলা প্রশাসক অঞ্জনা খান মজলিশ বলেন, ‘বিষয়টি আমি জানতাম না। এ ব্যাপারে আমি খোঁজ নিচ্ছি। অচিরেই এটি সংস্কারে ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

আরও পড়ুন:
আবর্জনার শহরে পরিণত হচ্ছে হবিগঞ্জ
শীতলক্ষ্যা পারের আরও দেড় শতাধিক অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ
সংস্কৃতি চর্চার কেন্দ্র এখন ভাগাড়
একটি উদ্যোগ বদলে দিলো চিত্র

শেয়ার করুন

মন্তব্য

বন্ধু-সহপাঠীদের চোখে যেমন ছিলেন শেখ কামাল

বন্ধু-সহপাঠীদের চোখে যেমন ছিলেন শেখ কামাল

বন্ধুদের সঙ্গে শেখ কামাল। শেখ কামালের বন্ধুদের বয়স এখন পেরিয়েছে ৭০ বছর। ছবি: সংগৃহীত

প্রাণপ্রাচুর্যে ভরপুর এক যুবক ছিলেন বঙ্গবন্ধুপুত্র শেখ কামাল। বন্ধুদের আড্ডার মধ্যমণি ছিলেন। রাজনীতিতে তুমুল সক্রিয় ছিলেন। আবার একই সঙ্গে সঙ্গীত, নাটক আর খেলাধুলা নিয়ে মেতে থাকতেন। তার বন্ধু ও সহপাঠীদের কয়েকজনের সঙ্গে কথা বলেছে নিউজবাংলা। তাদের স্মৃতিতে জীবন্ত হয়ে উঠেছেন অন্য এক শেখ কামাল।

শেখ কামাল শহীদ হয়েছেন ৪৬ বছর আগে। কিন্তু এখনও বন্ধুদের আড্ডায় ঘুরেফিরে আসে তার প্রসঙ্গ। বন্ধুরা একত্রিত হলে এখনও খুঁজে ফেরেন তাদের প্রিয় কামালকে।

১৯৪৯ সালের ৫ আগস্ট গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় জন্ম নেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের বড় ছেলে শেখ কামাল। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট পরিবারের অন্য সদস্যদের সঙ্গে নিহত হন তিনি। তখন তার বয়স ছিল ২৬ বছর।

কিন্তু সেই বয়সেই তিনি বাবার পরিচয়ের বলয়ের বাইরে নিজের পরিচয় তৈরি করে নেন। ছিলেন একজন দক্ষ সংগঠক। শেখ কামালের বন্ধু-সহপাঠীদের বয়স এখন পেরিয়েছে ৭০ বছর। অনেক স্মৃতি ধুসর হয়ে এসেছে। কিন্তু আড্ডা-গল্পে যখন প্রসঙ্গ ওঠে একে একে স্মৃতিগুলো যেন জীবন্ত হয়ে ওঠে।

শেখ কামালের স্কুলের বন্ধুদের একজন ব্যবসায়ী সৈয়দ মোহাম্মদ শামছুল। কয়েক বছর আগে স্ট্রোকে আক্রান্ত হয়ে অনেক স্মৃতি হারিয়েছেন তিনি। শেখ কামালের প্রসঙ্গ উঠতেই স্মৃতিগুলো যেন জীবন্ত হয়ে উঠল।

তিনি নিউজবাংলাকে বলেন, ‘কামালের সঙ্গে বন্ধুত্ব একদম ছোটবেলায়। ১৯৫৬ সালে কেজি ওয়ান থেকে আমরা একসঙ্গে পড়াশোনা শুরু করি। কত দুষ্টামি করেছি। তবে এত কিছু মনে নেই। সবদিক মিলিয়ে সে একজন পারফেক্ট জেন্টেলম্যান। তার মধ্যে কোনো দম্ভ ছিল না।

বন্ধু-সহপাঠীদের চোখে যেমন ছিলেন শেখ কামাল
১৯৪৯ সালের ৫ আগস্ট গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় জন্ম নেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের বড় ছেলে শেখ কামাল। শেখ কামালের বিশ্ববিদ্যালয় সহপাঠী তৌরিদ হোসেন বাদল জানান, বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার সময়ও কেউ বুঝতে পারত না সে প্রাইম মিনিস্টারের ছেলে। ছবি: সংগৃহীত

‘বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার সময়ও কেউ বুঝতে পারত না সে প্রাইম মিনিস্টারের ছেলে। তখন তো সারা দেশেই শেখ মুজিবের জয়গান। শেখ কামাল খুব ভালো সংগঠক ছিল। আমি কোনোদিন তার মধ্যে ভাব দেখিনি। একদম সাদামাটা একজন মানুষ, একজন সাধারণ মানুষ। খেলাধুলায় বিরাট পরিবর্তন সে এনেছে। এই যে খেলাধুলায় যে আধুনিকতা, এটার কারিগর কিন্তু সে। একজন অল রাউন্ডার।’

১৯৬৯-এর গণঅভ্যুত্থান ও একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধে অত্যন্ত সক্রিয় ভূমিকা পালন করেছেন শেখ কামাল। সরাসরি মুক্তিযুদ্ধেও অংশ নেন। প্রথম ওয়ার কোর্সে প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত হয়ে মুক্তিবাহিনীতে কমিশন লাভ করেন ও মুক্তিযুদ্ধের প্রধান সেনাপতি জেনারেল ওসমানির এডিসি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

বন্ধু-সহপাঠীদের চোখে যেমন ছিলেন শেখ কামাল

স্বাধীন বাংলাদেশের প্রথম ওয়ার কোর্সে প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত হয়ে মুক্তিবাহিনীতে কমিশন লাভ করেন শেখ কামাল। মুক্তিযুদ্ধের প্রধান সেনাপতি জেনারেল এম এ জি ওসমানির এডিসি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। ছবি: সংগৃহীত

তিনি ছিলেন বাংলাদেশ ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের সদস্য। পরবর্তীতে বাকশাল গঠনের পর জাতীয় ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্যও হন।

শুধু যে মুক্তিযুদ্ধে কিংবা রাজনীতিতেই বিচরণ করেছেন তা নয়। তিনি ছিলেন বহুমাত্রিক প্রতিভার অধিকারী। ভালো সেতার বাজাতেন, গাইতেনও বেশ। মুক্তিযুদ্ধের পর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে মঞ্চ নাটকের যে নবজন্ম হয়, তা হয়েছিল শেখ কামলের হাত ধরেই। সে সময়ের ঢাকার থিয়েটারপাড়ার অন্যতম প্রতিভা ছিলেন শেখ কামাল।

নাটকের দল নাট্যচক্রের তিনটি নাটকে অভিনয় করেছেন শেখ কামাল। এর মধ্যে দুটি পরিচালনা করেছেন নাট্যকার ম হামিদ। তিনি নিউজবাংলাকে বলেন, ‘ও নাটক করেছে আমাদের সঙ্গে। ও প্রায় পাঁচ-ছয়টা নাটক করেছে। তার মধ্যে তিনটাই ছিলো নাট্যচক্রের যার দুটি ছিল আমার পরিচালনায়।

‘বিভিন্ন কাজে জড়িত থাকার কারণে আমাদের রিহার্সালের সময় সে একটু দেরি করে আসত। কিন্তু আসার পর চরিত্র বুঝিয়ে দিলে খুব সহজেই সেটা বুঝে নিতে পারত। রিহার্সালের ফাঁকে ফাঁকে সে গান ধরত, অন্যরা তার সঙ্গে সুর মেলাত। কখনও কখনও রিহার্সালে নেচে নেচে ঘুরে ঘুরে গান গাইত। ওর অনেকগুলো প্রিয় গান ছিল।

‘পপধর্মী গান দল ধরে গাইতে খুব আনন্দ পেত সে। এই যে দুনিয়া কিসেরও লাগিয়া… গানটি খুব গাইত। সে মাঝে মাঝে বিভিন্ন ধরনের গান একেক তালে গাইতে পারত। কিন্তু সংগীতের উপর খুব ভালো দখল না থাকলে করা যায় না। সে মাঝে মাঝে মুখেই সেতারের ধুন বাজাত।’

শেখ কামালের সঙ্গে নাট্যকার ম হামিদের বন্ধুত্ব গভীর হয় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার সময়। ১৫ আগস্টের আগের রাতেও ম হামিদের সঙ্গে দেখা হয়েছিল শেখ কামালের। সেই স্মৃতি এখনও পোড়ায় বলে জানান ম হামিদ। তিনি বলেন, ‘স্বাধীনতার পর তার সাথে আমার পরিচয় হয় মানে মূল বন্ধুত্ব গড়ে ওঠে, সেটা বিশ্ববিদ্যালয়ে। ’৭৫-এর ১৪ আগস্ট ওর সঙ্গে আমার শেষ দেখা হয়েছিল। এখনও ভাবলে খুব মন খারাপ হয়। ওর মৃত্যুর মাত্র কয়েক ঘণ্টা আগে দেখা হয়েছিল। মাত্র ৪-৫ ঘণ্টার মধ্যেই কামাল শহীদ হয়ে গেল।

শেখ কামালের স্মৃতিচারণ করে তিনি বলেন, ‘তার দুষ্টুমিগুলোও ছিল ভীষণ বুদ্ধিদীপ্ত। বন্ধুদের মধ্যে মাঝে মাঝে সে কিছু দুষ্টুমি করত, সেগুলোও ছিল বুদ্ধিদীপ্ত। তখন আমি অপরাজেয় বাংলায় কাজ করছি। আমাকে সে ডেকে বলল, দেখে যান দেখে যান বাথরুমে কী লিখেছে?

‘আমি তার কথা শুনে বাথরুমে গেলাম। তখন পেছন থেকে সে বেসিনের একটা নল খুলে দিলে বেসিনের সব পানি এসে আমার গায়ে পড়ল। আসলে সেই নলটা খোলাই ছিল, সেটা দেখে হয়তো সে মনে করেছিল একটু মজা করি। আগেও কয়েক জনকে ভিজিয়েছে। পরে আমাকেও ভিজিয়েছে। আমরা সে সময় খুব মজা পেয়েছিলাম।’

তিনি বলেন, ‘সে ছিল আড্ডার মধ্যমণি। নানা প্রসঙ্গে কথা বলত। সব কিছু এত সুন্দর করে বলত, সবাই খুব আকর্ষণ বোধ করত। কিন্তু তার রসিকতা বোধও ছিল। ১৯৭৫ সালের ১৪ আগস্ট আমরা তিনজন অপরাজেয় বাংলায় কাজ করছি। তখন ভাস্কর্যের বাঁশগুলো সরিয়ে দিচ্ছিলাম পরের দিন বঙ্গবন্ধু আসবেন বলে। এদিক দিয়ে তিনি যাবেন, এখানে নামবেন।

‘তখন রাত সাড়ে ১১টার সময় কামাল কোথা থেকে হই হই করে এসে বলল, এই হামিদ ভাই কী করছেন? আপনার তাজমহল কবে শেষ হবে? আমি বললাম, তাজমহল তো করেছিল ২২ হাজার শ্রমিক কুড়ি বৎসরে। আর এখানে তো আমরা তিনজন শ্রমিক করছি তিন বছর লাগবে। এ রকম রসিকতা করত। মাঝে মাঝে সে বলত, হামিদ ভাইদের ওখানে চা পাওয়া যাবে, চা খেয়ে আসি। এ বলে চলে আসত।’

ম হামিদ বলেন, ‘ওর মধ্যে কখনও বিষাদ দেখতাম না। বন্ধুবৎসল ছিল। বহু মানুষকে সে ভালোবাসতে পারত এবং অনেকের ভালোবাসা সে পেয়েছে। সে অ্যাকাডেমিক্যালি আমার এক বছরের জুনিয়র ছিল কিন্তু সম্পর্কের মধ্যে কোনো আড়াল ছিল না। বন্ধুত্বে কোনো ব্যবধান ছিল না।

‘কখনই মনে হতো না প্রধানমন্ত্রী কিংবা রাষ্ট্রপতির ছেলে। এত বড় নেতার ছেলে কিন্তু কোনো দম্ভ তার মধ্যে ছিল না। মানুষের সঙ্গে সে হৃদয় দিয়ে মিশত। সেখানে কোনো মেকিত্ব ছিল না। খুবই সাদামাটা কিন্তু অসাধারণ মেধাবী, খুবই বুদ্ধিদীপ্ত।’

শেখ কামাল ছিলেন একজন দক্ষ ক্রীড়া সংগঠকও। তিনি ছিলেন আবাহনী ক্রীড়াচক্রের প্রতিষ্ঠাতা। আবাহনী ক্রীড়াচক্রের অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা সদস্য শেখ কামালের বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধু তৌরিদ হোসেন বাদল বলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয়ের সহপাঠী হওয়ার আগে তাকে দেখেছি ধানমন্ডি ক্লাবের মাঠে ক্রিকেট, বাস্কেটবল, ফুটবল খেলতে। সে ছিল মাল্টি-ট্যালেন্টেড।

বন্ধু-সহপাঠীদের চোখে যেমন ছিলেন শেখ কামাল

শেখ কামাল ছিলেন আবাহনী ক্রীড়াচক্রের প্রতিষ্ঠাতা। শেখ কামালের বিশ্ববিদ্যালয় সহপাঠী তৌরিদ হোসেন বাদল জানান, আবাহনী ক্রীড়াচক্রের অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা সদস্য ছিলেন বঙ্গবন্ধুপুত্র। ছবি: সংগৃহীত

‘একদিকে খেলাধুলা, আবার গানবাজনা। সে খুব ভালো সেতার শিল্পী ছিল। সে সময় বিভিন্ন সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতা হতো। তাদের কয়েকটিতে কামাল সেতার বাজিয়ে প্রথম হয়েছিল।’

বন্ধুর স্মৃতিচারণ করে তিনি বলেন, ‘পারিবারিকভাবে তার সঙ্গে আমাদের বাসায় যাওয়া আসা ছিল। আমি তাদের বাসায় বহুবার গিয়েছি। সেও বহুবার এসেছে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজবিজ্ঞান বিভাগের প্রথমবর্ষে ভর্তি হওয়ার পর আমরা সহপাঠী হই। একই ক্লাসে পড়ায় তার সঙ্গে বন্ধুত্ব গড়ে ওঠে। সেটি আরও গভীর হয় যখন আমি কামালের জন্যই আবাহনী ক্লাবের ফাউন্ডার মেম্বার হলাম।

‘ক্লাবের বিভিন্ন কাজে ব্যস্ত থাকতে হতো। আবার আমরা একসঙ্গে নাটক করতাম। স্বাধীনতার পর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে নাটকের যে নব আন্দোলন শুরু হলো, তাতে কামাল একটা অগ্রণী ভূমিকা পালন করেছে। আমি সরাসরি না থাকলেও কামালের সঙ্গে ছাত্রলীগ করতাম। ১৯৬৯ সালে যখন বিশ্ববিদ্যালয়ে এগারো দফা, ছয় দফা আন্দোলন শুরু হলো, সেই গণআন্দোলনের সময় কামাল বিভিন্ন স্কুলে গিয়ে বক্তৃতা দিত। সে ছাত্রলীগের একনিষ্ঠ কর্মী হিসেবে ছাত্রদের সংগঠিত করত। সেও বঙ্গবন্ধুর মতোই একদম বলা যেতে পারে ইনবর্ন ওরগানাইজার ছিল।’

শেখ কামালের কোন স্মৃতিটি সবচেয়ে বেশি মনে পড়ে জানতে চাইলে তৌরিদ হোসেন বাদল বলেন, ‘আমরা মুক্তিযুদ্ধের পর কোলকাতায় নাটক করতে গিয়েছিলাম। সেই দলে আমাদের সাথে রফিকুল ইসলাম স্যার ছিলেন। আর কামালের সঙ্গে অভিনয় করেছিলেন ফেরদৌসি মজুমদার আপা। বালিগঞ্জের একটি বিশাল বাড়িতে আমাদের থাকার ব্যবস্থা হয়েছিল। সেখানে গিয়ে আমার জ্বর হলো।

‘বন্ধুদের জন্য তার খুব দরদ ছিল। তখন আমার জন্য কয়েকটি অনুষ্ঠান বাতিল হলো। জ্বরের সময় আমার পাশে বসেই সে আমার সেবা করেছে। এটা আমার মনে দাগ কেটে আছে। একদিন দেখি আমাদের বাসায় মেঝেতে বসে আমার মা-খালা সবার সঙ্গে গল্প করছে। সে যে এত বড় নেতার ছেলে, তা বুঝতেই দিত না কাউকে। কামাল যখন ছোট তখন থেকেই তো বঙ্গবন্ধু মন্ত্রী ছিলেন। সেই পরিবারের সন্তান হয়েও সে কিন্তু মাটির খুব কাছাকাছি ছিল। মধ্যবিত্ত পরিবারের সদস্যরা যেমন হয়, বঙ্গবন্ধু ও তার পরিবারের সবাই ছিলেন তেমনই।’

বন্ধু-সহপাঠীদের চোখে যেমন ছিলেন শেখ কামাল

বড় বোন শেখ হাসিনার (বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা) সঙ্গে শেখ কামাল। ছবি: সংগৃহীত

পঁচাত্তরের ১৫ আগস্ট শেখ কামালের বন্ধুদের বুকে গভীর ক্ষত হয়ে আছে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের সহপাঠী তৌরিদ হোসেন বলেন, ‘১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধু আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ে আসবেন, আমাদের বিভাগে আসবেন, সে সময় এই যে অকল্পনীয় ঘটনা ঘটে গেল, কামাল-সুলতানা চলে গেল, এটা আমাদের মনে গভীর ক্ষতের সৃষ্টি করে গেছে।

বন্ধু-সহপাঠীদের চোখে যেমন ছিলেন শেখ কামাল
শেখ কামালের বন্ধুরা জানান, আমাদের বন্ধুরা এখনও যখন একত্রিত হয় আমাদের আলাপে কামাল-সুলতানা দম্পতির প্রসঙ্গ চলে আসে। ছবি: সংগৃহীত

‘মৃত্যুর আগ পর্যন্ত কখনও ভুলতে পারব না শেখ কামালকে। আমাদের বন্ধুরা এখনও যখন একত্রিত হই আমাদের আলাপে কামাল-সুলতানা আসবেই।’

আরও পড়ুন:
আবর্জনার শহরে পরিণত হচ্ছে হবিগঞ্জ
শীতলক্ষ্যা পারের আরও দেড় শতাধিক অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ
সংস্কৃতি চর্চার কেন্দ্র এখন ভাগাড়
একটি উদ্যোগ বদলে দিলো চিত্র

শেয়ার করুন

নন্দিত থেকে যেভাবে নিন্দিত

নন্দিত থেকে যেভাবে নিন্দিত

ধর্ষণ ও হত্যাচেষ্টার অভিযোগ তোলার পর সাংবাদিকদের মুখোমুখি পরীমনি (বাঁয়ে) এবং বুধবার র‌্যাবের হাতে আটকের পর বাসা থেকে বের হওয়ার পথে। ছবি: নিউজবাংলা

পরীমনি গত জুনে ঢাকা বোট ক্লাবে ধর্ষণ চেষ্টার শিকার হওয়ার অভিযোগ তোলার পর সাধারণ মানুষের ব্যাপক সহানুভূতি পান। অবশ্য সেই আলোড়ন স্থায়ী হয়নি, কয়েক দিনের মধ্যেই তার বিতর্কিত আরও কিছু কর্মকাণ্ড প্রকাশ পেলে ঘুরে যেতে থাকে জনমত।

ঢাকাই চলচ্চিত্রের পরিচিত মুখ পরীমনি বিভিন্ন সময়ে নানা কারণে হয়েছেন আলোচিত-বিতর্কিত। শো বিজে আসার অল্প সময়ের মধ্যে তিনি চলে আসেন আলোচনার কেন্দ্রে। তার অভিনীত সিনেমার বেশির ভাগ ব্যবসা সফল না হলেও ব্যক্তিগত ধনাঢ্য জীবন নিয়ে রয়েছে নানা প্রশ্ন।

তবে এর মধ্যেও গত জুনে তিনি ঢাকা বোট ক্লাবে ধর্ষণ চেষ্টার শিকার হওয়ার অভিযোগ তোলার পর সাধারণ মানুষের ব্যাপক সহানুভূতি পান। অবশ্য সেই আলোড়ন স্থায়ী হয়নি, কয়েক দিনের মধ্যেই তার বিতর্কিত আরও কিছু কর্মকাণ্ড প্রকাশ পেলে ঘুরে যেতে থাকে জনমত।

র‌্যাবের অভিযানে বুধবার আটক হয়েছেন পরীমনি। তার বাসা থেকে ভয়ংকর মাদক এলএসডি, আইসসহ বিপুল পরিমাণ মদ উদ্ধারের দাবি করেছে র‌্যাব। মাত্র দেড় মাসের ব্যবধানে নন্দিত থেকে নিন্দিত চরিত্রে পরিণত হয়েছেন আলোচিত এই অভিনেত্রী।

গত ১৩ জুন পরীমনির একটি ফেসবুক স্ট্যাটাসে আটকে যায় সারা দেশের চোখ। ওইদিন রাত ৮টায় নিজের ভেরিফায়েড পেজে তিনি অভিযোগ তোলেন, ঢাকা বোট ক্লাবে তাকে ধর্ষণ ও হত্যার চেষ্টা করা হয়েছে। তবে কারো নাম উল্লেখ করেননি তিনি।

এই স্ট্যাটাস মুহূর্তেই ভাইরাল হয় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে। সংবাদ মাধ্যমকর্মীরা রাতেই ছুটে যান পরীমনির বনানীর বাসায়। এ সময়ে তিনি অভিযোগ করেন, প্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়ী ও ঢাকা বোট ক্লাবের কার্যনির্বাহী কমিটির তখনকার সদস্য নাসির উদ্দিন মাহমুদ ৯ জুন ক্লাবে তাকে ধর্ষণ ও হত্যার চেষ্টা করেন।

নন্দিত থেকে যেভাবে নিন্দিত
ধর্ষণ ও হত্যা চেষ্টার অভিযোগ তোলার পর বনানীর বাসায় সংবাদকর্মীদের মুখোমুখি পরীমনি


পরদিন ১৪ জুন সাভার থানায় ব্যবসায়ী ও জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য নাসির উদ্দিন মাহমুদের বিরুদ্ধে মামলা করেন পরীমনি। ওই দিনই পুলিশ নাসিরকে গ্রেপ্তার করে

১৫ জুন বিকেলে নিজের বক্তব্য জানাতে গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি) কার্যালয়ে যান আলোচিত এই অভিনেত্রী। প্রায় দুই ঘণ্টা পর ডিবি কার্যালয় থেকে বেরিয়ে আসামি গ্রেপ্তারের ঘটনায় সাংবাদিকদের কাছে নিজের স্বস্তির কথা জানান তিনি। সে সময় তার বলা ‘আমি রিফ্রেশড’ কথাটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বেশ আলোচনার জন্ম দেয়।

পরীমনির সাহসিকতার প্রশংসা করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অনেকেই সরব হন। প্রবল আলোচিত হিরো আলম গানে গানে ন্যায়বিচার নিশ্চিতের আহ্বান জানান। পরীমনিকে শ্রদ্ধা ও ভালোবাসা জানিয়ে ফেসবুকে পোস্ট দেন নির্বাসিত লেখিকা তসলিমা নাসরিনও।

ধর্ষণ ও হত্যাচেষ্টা মামলায় গ্রেপ্তারের পর নাসির উদ্দিন মাহমুদ ও তার সঙ্গী তুহিন সিদ্দিকী অমিকে কয়েক দফা রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করে পুলিশ। এরপর ৩০ জুন আদালত তাকে জামিন দেয়। পরদিন ১ জুলাই কারাগার থেকে মুক্তি পান নাসির উদ্দিন আহমেদ।

শুরু থেকেই তিনি নিজের বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগ অস্বীকার করছিলেন নাসির। কারাগার থেকে বের হওয়ার পর নিউজবাংলার কাছে তিনি দাবি করেন, বোট ক্লাব থেকে পরীমনি তিন লিটারের একটি ব্লু লেবেলের বোতল নিয়ে যেতে চেয়েছিলেন। আর তাতে বাধা দেয়ার কারণেই ওই রাতে তৈরি হয় ‘ঝামেলা’।

নাসির উদ্দিন মাহমুদ বলেন, ‘ওই দিন অমি সাহেব প্রথমে তাকে (পরীমনি) একটা ব্লু লেবেল খাইয়েছিল, যেটার দাম ৩৫ হাজার টাকা। সেটা সে শরবতের মতো খেয়ে ফেলছে, অল্প সময়ের মধ্যে। পরবর্তী সময়ে আরও একটা দেয়া হয়েছিল, সেটার তিন ভাগের দুই ভাগ সে খেয়ে ফেলছিল, যতটুকু আমার মনে পড়ে।

‘আর দুটা ওয়াইনের বোতল সঙ্গে থাকা একটা মেয়ের ব্যাগে ঢুকিয়ে ফেলছিল পরীমনি। এরপর ঝামেলা শুরু হয় তিন লিটারের একটা ব্লু লেবেলের বোতল নিয়ে, যেটার দাম দেড় লাখ টাকা। যেটা আমরা বিক্রি করি না। মূল ঝামেলা ওই বোতল নেয়া থেকেই শুরু।’

নাসিরের অভিযোগ, এরপরই পরীমনি ও তার সঙ্গীরা ভাঙচুর ও গালিগালাজ শুরু করেন। এরপর তোলা হয় ‘ধর্ষণ ও হত্যাচেষ্টার’ অভিযোগ।

নন্দিত থেকে যেভাবে নিন্দিত
ধর্ষণ ও হত্যার অভিযোগ তুলে কান্নায় ভেঙে পড়েন পরীমনি

তবে নাসিরের এই অভিযোগ অস্বীকার করেন পরীমনি।মিডিয়া ট্রায়ালের’ পাল্টা অভিযোগ তুলে ঢাকাই সিনেমার আলোচিত এই অভিনেত্রী বলেন, ‘‘এমনকি সেই রাতে (বোট ক্লাবে) নাসির একজন ওয়েটারকেও লাথি মেরেছিল। ‘ডানাকাটা পরি’ গানের সঙ্গে নাচতে নাচতে আমার শরীরের বিভিন্ন জায়গায় টাচ করছিল। তার ওই সময়ের আচরণ এত অসভ্য ছিল তা প্রকাশ করা যাবে না। শুধু তাই নয়, এসব ঘটনা তার নিজের মোবাইল ফোনে ধারণও করছিল।”

‘আমি ডানাকাটা পরি’ গানটি পরীমনি অভিনীত ‘রক্ত’ সিনেমার। সিনেমাটি ছিল বাংলাদেশ-ভারত যৌথ প্রযোজনার।

পরীমনিকে নিয়ে আলোচনার মধ্যেই গুলশানের একটি ক্লাবে ভাঙচুরের অভিযোগে তার বিরুদ্ধে জিডি করার তথ্য প্রকাশ পায় ১৬ জুন।

ক্লাব কর্তৃপক্ষ সাংবাদিকদের জানায়, ৭ জুন রাতে গুলশান-১ এলাকার অল কমিউনিটি ক্লাব ৯৯৯ নম্বরে কল করলে পুলিশ ঘটনাস্থলে যায়। পরে গুলশান থানায় পরীমনির বিরুদ্ধে সাধারণ ডায়েরি করে বাহিনীটি।

তবে সেই অভিযোগও অস্বীকার করেন পরীমনি। তিনি দাবি করেন, ঢাকা বোট ক্লাবের ঘটনা ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টার অংশ হিসেবে বিষয়টিকে সামনে আনা হয়েছে।

সময় গড়ানোর সঙ্গে সঙ্গে পরীমনির বিলাসী জীবন নিয়ে নতুন করে প্রশ্ন উঠতে থাকে। অভিনয় জগতের সঙ্গে যুক্তরাও বিষয়টি নিয়ে নিজেদের অস্বস্তির কথা জানান।

নন্দিত থেকে যেভাবে নিন্দিত
ঢাকা বোট ক্লাবের কার্যনির্বাহী কমিটির সাবেক সদস্য নাসির উদ্দিন মাহমুদ

টেলিভিশন ও চলচ্চিত্রের অভিনেত্রী ও পরিচালক অরুণা বিশ্বাস একটি এফএম রেডিওর সাক্ষাৎকারে পরীমনিকে উদ্দেশ করে বলেন, ‘একজন শিল্পী কত টাকা ইনকাম করলে পাঁচ কোটি টাকার গাড়ি চালাতে পারে, চার কোটি টাকার বাড়ি কিনতে পারে।’

এর পাল্টা জবাবও দেন পরীমনি। নিজের ফেসবুক পেজে লেখেন, ‘বড় বড় সম্মানিত শিল্পীরাও পিছে রটানো গসিপ নিয়ে আমার দিকে আঙ্গুল তুলতেও ছাড়লেন না আজ।’ পাশাপাশি বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির ভূমিকা নিয়েও বেশ কয়েকবার হতাশা প্রকাশ করেন তিনি।

পরীমনি প্রশ্নে ধীরে ধীরে জনমনে বাড়তে থাকে বিভক্তি। এর মধ্যেই বুধবার বিকেলে হঠাৎ তার ফেসবুক লাইভ হতচকিত করে সবাইকে। বিকেল ৪টার দিকে লাইভে এসে তিনি জানান, তার বাসায় আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর পরিচয়ে কয়েকজন ঢুকতে চাইছেন।

পরীমনি বলেন, থানায় ফোন দিয়েও কোনো সাড়া পাচ্ছেন না। তিনি বলেন, ‘কাকে ফোন দেব বুঝতেছি না। থানা থেকে কেউ ফোন ধরছে না। আমি লাইভ কাটব না, যদি আমার হাত থেকে কেউ ফোন নিয়ে নেয়, বুঝবেন আমার কিছু একটা হয়েছে।’

লাইভ চলার সময়েই শোনা যাচ্ছিল, ‘দরজায় বাইরে দাঁড়িয়ে থাকা ব্যক্তিরা নিজেদের আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য বলে পরিচয় দিচ্ছেন। তাদের বলতে শোনা যায়, ‘ঘরে আসতে দেন। আমরা আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর লোক।’

পরীমনির লাইভের মধ্যেই তার বনানীর বাসার সামনে ভিড় করতে শুরু করে গণমাধ্যমকর্মীরা। এক পর্যায়ে তিনি বাসার দরজা খুলতে রাজি হন। এরপরেই শেষ হয় প্রায় ৩২ মিনিটের লাইভ।

র‍্যাবের লিগ্যাল অ্যান্ড মিডিয়া উইংয়ের পরিচালক কমান্ডার খন্দকার আল মঈন নিউজবাংলাকে জানান, সুনির্দিষ্ট তথ্যের ভিত্তিতেই অভিযান পরিচালনা করা হয়।

নন্দিত থেকে যেভাবে নিন্দিত
মাদকসহ আটকের পর পরীমনিকে নেয়া হয় র‍্যাব সদর দপ্তরে

প্রায় সাড়ে তিন ঘণ্টা অভিযান শেষে সন্ধ্যা ৭টায় র‌্যাবের গোয়েন্দা শাখার পরিচালক লেফটেন্যান্ট কর্নেল খায়রুল ইসলাম পরীমনিকে হেফাজতে নেয়ার কথা নিশ্চিত করেন।

র‍্যাব জানায়, তার বাসা থেকে বিপুল পরিমাণ মদ, এলএসডি ও নতুন ধরনের মাদক আইস উদ্ধার করা হয়েছে।

রাত সোয়া ৮টার দিকে পরীমনিকে নিয়ে কুর্মিটোলায় র‌্যাবের সদর দপ্তরের উদ্দেশে রওনা হয় একটি গাড়ি। রাত পৌনে ৯টার দিকে গাড়িটি পৌঁছায় র‌্যাব সদর দপ্তরে।

লেফটেন্যান্ট কর্নেল খায়রুল ইসলাম নিউজবাংলাকে বলেন, ‘বুধবার রাতে পরীমনিকে জিজ্ঞাসাবাদের পর বৃহস্পতিবার অভিযান সম্বন্ধে বিস্তারিত গণমাধ্যমকে জানানো হবে।’

আরও পড়ুন:
আবর্জনার শহরে পরিণত হচ্ছে হবিগঞ্জ
শীতলক্ষ্যা পারের আরও দেড় শতাধিক অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ
সংস্কৃতি চর্চার কেন্দ্র এখন ভাগাড়
একটি উদ্যোগ বদলে দিলো চিত্র

শেয়ার করুন

কঙ্কালসার ভবনটিই সেই বিশ্ব বিজ্ঞানাগার

কঙ্কালসার ভবনটিই সেই বিশ্ব বিজ্ঞানাগার

হেমায়েতপুরের শ্রী শ্রী ঠাকুর অনুকূলচন্দ্রের স্মৃতি বিজড়িত বিশ্ব বিজ্ঞানাগার ভবন দুটির বেহাল দশা। ছবি: নিউজবাংলা

শ্রী শ্রী ঠাকুর অনুকূলচন্দ্র আশ্রমের ভক্তদের অভিযোগ, ভবন দুটির সুরক্ষায় সংশ্লিষ্ট দপ্তরে আবেদন করা হলেও নেয়া হয়নি কোনো উদ্যোগ। উপরন্তু সেখানে প্রায়ই হানা দিচ্ছে চোর। তারা ভবনের রডসহ অবশিষ্ট সামগ্রী খুলে নিয়ে চলে যাচ্ছে।

পলেস্তারা খসে গেছে। সেখানে আশ্রয় নিয়েছে গুল্ম লতা। নেই দরজা কিংবা জানালা। আছে শুধু কঙ্কালসার দেহটি।

বলছি পাবনার হেমায়েতপুরের শ্রী শ্রী ঠাকুর অনুকূলচন্দ্রের স্মৃতি বিজড়িত বিশ্ব বিজ্ঞানাগার ভবন দুটির কথা। পাবনা মানসিক হাসপাতালের সামনে হলেও এগুলোর ভাগ্যে যেন শুধুই বঞ্চনা।

শ্রী শ্রী ঠাকুর অনুকূলচন্দ্র আশ্রমের ভক্তদের অভিযোগ, ভবন দুটির সুরক্ষায় সংশ্লিষ্ট দপ্তরে আবেদন করা হলেও নেয়া হয়নি কোনো উদ্যোগ। উপরন্তু সেখানে প্রায়ই হানা দিচ্ছে চোর। তারা ভবনের রডসহ অবশিষ্ট সামগ্রী খুলে নিয়ে চলে যাচ্ছে।

বিভিন্ন নথি ঘেঁটে জানা যায়, শ্রী শ্রী ঠাকুর অনুকূলচন্দ্র ১৮৮৮ সালের ১৪ সেপ্টেম্বর পাবনার হেমায়েতপুরে জন্ম নেন। ১৯২৯ সালে তিনি সেখানে অনুকূলচন্দ্র সৎসঙ্গ প্রতিষ্ঠা করেন।

তিনি একে একে গড়ে তোলেন সৎসঙ্গ তপোবন বিদ্যালয়, সৎসঙ্গ মেকানিক্যাল ও ইলেট্রিক্যাল ওয়ার্কসপ, প্রেস ও পাবলিকেশন হাউস, কুঠির বিভাগ, ব্যাংক, বিশ্ব বিজ্ঞানাগারসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান।

কঙ্কালসার ভবনটিই সেই বিশ্ব বিজ্ঞানাগার

১৯৪৬ সালে ঠাকুর অসুস্থতা হওয়ার পর বায়ু পরিবর্তনের জন্য স্বপরিবারে ভারতে যান। তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানে রেখে যান বিশাল কর্মযজ্ঞ। ১৯৪৭ সালে দেশভাগ হলে নানা জটিলতায় কারণে ঠাকুর আর ফিরেননি এ দেশে।

আশ্রম কর্তৃপক্ষ জানায়, ঠাকুরের জন্মস্থান, তার বাসগৃহ, মাতৃমন্দির, স্মৃতিমন্দির, নিভৃত নিবাস, অফিসসহ স্মৃতি বিজড়িত স্থানগুলো হেমায়েতপুর সৎসঙ্গকে ফিরিয়ে দেয়ার জন্য ১৯৬১ সাল থেকে সরকারের কাছে আবেদন করা হয়। অনেকবার আবেদন করার পর জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে সুপারিশ পাঠানো হলেও তা বাস্তবায়ন হয়নি।

এ বিষয়ে সুচিত্রা সেন স্মৃতি সংরক্ষণ পরিষদ পাবনার সাধারণ সম্পাদক নরেশ মধু বলেন, ‘এটি ঠাকুর অনুকূলচন্দ্রের স্মৃতি বিজড়িত স্থাপনাগুলোর একটি। অথচ এতটাই অবহেলায় ফেলে রাখা হয়েছে যে, ভবনটি দিনে দিনে মিলিয়ে যাচ্ছে।

‘মানসিক হাসপাতালের নিরাপত্তা বলয়ের মধ্যে থাকলেও হাসপাতাল কর্তৃপক্ষও কিছু জানে না। আমরা চাই দ্রুত সময়ের মধ্যে স্থাপনাটি প্রত্নতত্ত্ব অধিদপ্তরের আওতায় নিয়ে সংরক্ষণ করা হোক।’

কঙ্কালসার ভবনটিই সেই বিশ্ব বিজ্ঞানাগার

ঠাকুর অনুকূলচন্দ্র সৎসঙ্গ আশ্রমের সভাপতি রবীন্দ্রনাথ সরকার বলেন, ‘মানসিক হাসপাতালের ভেতরে যেসব স্মৃতি রয়েছে, তা হাসপাতালের শুরু থেকেই দাঁড়িয়ে আছে। এইসব স্থাপনা মানসিক হাসপাতালের কার্যক্রমকে কখনো কোনো বাধার সৃষ্টি করেনি।

‘সৎসঙ্গ কর্তৃপক্ষ বহুবার বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন সরকারপ্রধানের কাছে আবেদন জানিয়েছে যাতে করে ঠাকুরের ফেলে যাওয়া ভবনগুলোকে প্রত্নতাত্ত্বিক বিভাগের আওতায় নেয়া হয়। কিন্তু কেউ কোনো পদক্ষেপ নেয়নি।’

পাবনা মানসিক হাসপাতালের পরিচালক আবুল বাসার মো. আসাদুজ্জামান বলেন, ‘স্মৃতি বিজড়িত এ স্থাপনাটি ভাঙার বিষয়ে আমরা কিছুই জানি না। এটি ভেঙে ফেলার কোনো নির্দেশনাও আমাদের কাছে আসেনি।

হাসপাতালের সামনে বিজ্ঞানাগার ভাঙচুর হওয়া নিয়ে করা প্রশ্নের জবাবে পরিচালক বলেন, ‘এটি দেখভালের জন্য যথেষ্ট নিরাপত্তাকর্মী নেই। রাতের আঁধারে কে বা কারা ভেঙেছে তা আমরা কীভাবে জানব?’

কঙ্কালসার ভবনটিই সেই বিশ্ব বিজ্ঞানাগার

পাবনা গণপূর্ত বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী আনোয়ারুল আজিম বলেন, ‘পাবনা মানসিক হাসপাতালের ভেতরে অনুকূলচন্দ্রের কোনো স্থাপনা ভেঙে ফেলার কোনো নির্দেশনা আমাদের কাছে নেই। আর সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের অনুমতি ছাড়া আমাদের ভেঙে ফেলার কোনো ক্ষমতাও নেই।

‘আমি যতটুকু জানি, এটি সংরক্ষণের জন্য একটি নীতিগত সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।’

এ বিষয়ে পাবনার জেলা প্রশাসক (ডিসি) বিশ্বাস রাসেল হোসেন বলেন, ‘এ ঘটনাটি আমি ভালোভাবে জানি না। বিষয়টি জেনে তারপর প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেয়া হবে।’

আরও পড়ুন:
আবর্জনার শহরে পরিণত হচ্ছে হবিগঞ্জ
শীতলক্ষ্যা পারের আরও দেড় শতাধিক অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ
সংস্কৃতি চর্চার কেন্দ্র এখন ভাগাড়
একটি উদ্যোগ বদলে দিলো চিত্র

শেয়ার করুন

প্রত্যাবাসনের অনিশ্চয়তায় রোহিঙ্গা নিয়ে বিদেশি চাপ

প্রত্যাবাসনের অনিশ্চয়তায় রোহিঙ্গা নিয়ে বিদেশি চাপ

পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন বলেন, ‘বাংলাদেশে আশ্রিত রোহিঙ্গাদের সমাজে অন্তর্ভুক্ত করা বা রেখে দেয়ার জন্য বিশ্বব্যাংকের প্রস্তাবে ঢাকা রাজি নয়। আমাদের অগ্রাধিকার ইস্যু হচ্ছে রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসন, রোহিঙ্গারা তাদের বাসভূমে ফিরে যাবে।’

মিয়ানমারের আশ্রিত রোহিঙ্গাদের নিজভূমে ফেরত যাওয়া বা প্রত্যাবাসনের সম্ভাবনা আপাতত দেখছে না বাংলাদেশ। বিশেষ করে গত ফেব্রুয়ারিতে দেশটিতে অভ্যুত্থানের মাধ্যমে সেনাবাহিনী ক্ষমতায় আসার পর এই অনিশ্চয়তা তৈরি হয়েছে।

আর এই অবস্থায় আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠানসহ নানা সংস্থা ও রাষ্ট্র রোহিঙ্গাদের দীর্ঘমেয়াদে বাংলাদেশে রাখার কথা বিবেচনায় নিয়ে কর্মপরিকল্পনা সাজাচ্ছে। এ ব্যাপারে বাংলাদেশ সরকারের ওপর নানা রকম চাপ প্রয়োগের চেষ্টাও আছে। যদিও শুরু থেকে এ ধরনের চাপ নাকচ করে আসছে বাংলাদেশ।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আমরা কিন্তু হাল ছেড়ে বসে নেই। আমরা সেখানে সেনা অভ্যুত্থানের পর থেকেই চীনের সঙ্গে যোগাযোগ করেছি। কারণ রোহিঙ্গাদের ফেরাতে চীন মূল মধ্যস্থতাকারীর ভূমিকায় ছিল। তাদের উদ্যোগেই ত্রিপক্ষীয় চুক্তি হয়।

‘সম্প্রতি তাসখন্দ সফরেও চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ওয়াই ইয়ির সঙ্গে আমার বৈঠক হয়। বৈঠকে আমরা আবারও ত্রিপক্ষীয় আলোচনা শুরুর বিষয়ে একমত হই। কিন্তু সমস্যাটা হলো মিয়ানমারে সামরিক শাসন জারির পর থেকে তাদের দেশে যে পরিমাণ বিক্ষোভ-সংঘর্ষ চলছে, তাতে প্রকৃত কর্তৃপক্ষের সঙ্গে যোগাযোগটা কঠিন হয়ে পড়ছে বলে চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী আমাকে জানিয়েছেন।’

মোমেন বলেন, তাসখন্দে রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গেও রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন নিয়ে তার কথা হয়েছে।

তিনি বলেন, ‘আমি তাকে বললাম, আপনারা বলছেন, মিয়ানমারের বিষয়ে অ্যাফ্রেড। আপনারা বলেছিলেন যে, রোহিঙ্গা ইস্যুটা দ্বিপক্ষীয় হোক। তৃতীয় পক্ষ এলে অনিশ্চয়তা বাড়বে। আপনি বলেছিলেন, মিডেল-ইস্টে দেখো। সিরিয়া, ইরাক, ইয়েমেনে তৃতীয় পক্ষ আসায় কোনো লাভ হয়নি। আপনাদের কথামতো আমরা দ্বিপক্ষীয় অনেক মিটিং করলাম। কোনো লাভই তো হয়নি। অনেক চেষ্টাই তো করলাম। একজন লোকও ফিরিয়ে দিতে পারলাম না। আমরা তো ত্রিপক্ষীয় আলোচনাও করলাম।’

মোমেন বলেন, ‘আমি তাকে বললাম, আমি চাই আপনি এই ট্রাইলেটারাল উদ্যোগে অংশ নিন এবং রোহিঙ্গা ফেরাতে ভূমিকা রাখেন। আপনার সঙ্গে তাদের এত ভালো সম্পর্ক! এই সেদিন ওদের (মিয়ানমার) মিলিটারি চিফ আসল। আপনারা তাদের জিনিসপত্র দিচ্ছেন! আপনারা বললে ওরা শুনবে।

‘জবাবে রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী আমাকে বললেন, “আমরা তো বলছি। আবারও বলব।” কিন্তু ত্রিপক্ষীয় বৈঠক সম্পর্কে আমি যেটা বলছি, সেটায় তিনি রাজি হননি। কারণ হিসেবে উনি বললেন, এটা নিয়ে আলাপ-আলোচনা করতে হবে। আমি বললাম, আচ্ছা সময় নেন। প্রয়োজনে চীনের সঙ্গেও কথা বলেন। কেননা আপনি ও চীনই তো মিয়ানমারকে শক্ত অবস্থানে রাখছেন। উনি এতে সাদামাটা কোনো জবাব দেননি। কেবল বলেছেন, এটা নিয়ে আলাপ-আলোচনা করতে হবে।’

এদিকে ২৬ জুলাই ঢাকায় আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে মিয়ানমারের অন্যতম মিত্র জাপানের রাষ্ট্রদূত ইতো নাওকি বলেন, রোহিঙ্গাদের নিরাপদে মিয়ানমারে ফেরত পাঠানোর পথ খুঁজছেন তারা। রোহিঙ্গা সংকটের দীর্ঘমেয়াদি ও টেকসই সমাধান এই পুরো অঞ্চলের ভবিষ্যৎ স্থিতিশীলতার জন্য গুরুত্বপূর্ণ বলেও উল্লেখ করেন তিনি।

ইতো নাওকি বলেন, জাপান দ্রুত প্রত্যাবাসনে সক্রিয় পরিবেশ তৈরিতে যথাযথ চেষ্টা করবে। তবে ‘উপযুক্ত সময়’ এলেই মিয়ানমারের কাছে বিষয়টি উত্থাপন করা হবে বলে তিনি মন্তব্য করেন।

আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলোর অবস্থান

এরই মধ্যে বিশ্বব্যাংক তাদের প্রস্তাবিত ‘রিফিউজি পলিসি রিভিউ ফ্রেমওয়ার্ক’-এ রোহিঙ্গাদের বাংলাদেশের স্থানীয় সমাজের সঙ্গে মিশে যাওয়ার সুযোগ দেয়ার পরামর্শ দিয়েছে। রোহিঙ্গাদের বাংলাদেশের মূল সমাজে অন্তর্ভুক্ত করা বা স্থায়ীভাবে রেখে দেয়ার প্রস্তাব দিয়েছে বিশ্বব্যাংক। তবে প্রস্তাবটিকে অবাস্তব বা কল্পনাপ্রসূত অভিহিত করে তা নাকচ করে দিয়েছে সরকার।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন বলেন, ‘বাংলাদেশে আশ্রিত রোহিঙ্গাদের সমাজে অন্তর্ভুক্ত করা বা রেখে দেয়ার জন্য বিশ্বব্যাংকের প্রস্তাবে ঢাকা রাজি নয়। আমাদের অগ্রাধিকার ইস্যু হচ্ছে রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসন, রোহিঙ্গারা তাদের বাসভূমে ফিরে যাবে।’

প্রত্যাবাসনের অনিশ্চয়তায় রোহিঙ্গা নিয়ে বিদেশি চাপ

বিশ্বব্যাংক তাদের প্রস্তাবে রোহিঙ্গাদের জন্য সব ধরনের অধিকার দাবি করেছে, যাতে তারা দেশের সর্বত্র কাজ করতে পারে অন্য সকল বাংলাদেশির মতো। তাদের আইনি অধিকার দেয়ার কথা বলা হয়েছে, জন্ম-মৃত্যু নিবন্ধনের কথা বলা হয়েছে। তাদের চলাচলের স্বাধীনতা দেয়ার কথা বলা হয়েছে। এমনকি বলা হয়েছে, তাদের জমিজমা কেনার ও ব্যবসা করতে ক্ষমতা দেয়ার কথাও। বলা হয়েছে, তারা যাতে তাদের প্রতিনিধি নির্বাচন করতে পারে দেশের নাগরিকদের মতো।

মোমেন বলেন, ‘আমরা বলেছি, প্রথমে আমাদের সংজ্ঞায় রোহিঙ্গারা রিফিউজি না। আমরা এই প্রস্তাব গ্রহণ করতে পারছি না। দে শুড গো ব্যাক। দে আর ট্যাম্পোরারি পিপল, নট রিফিউজিস। আর আমাদের প্রতিবেশী মিয়ানমারও কখনও বলেনি তারা ফেরত নেবে না।

‘আমরা কোনো শরণার্থী আশ্রয় দিইনি। আমরা বিপদগ্রস্ত, জোরপূর্বক বাস্তুচ্যুত নাগরিকদের সাময়িক আশ্রয় দিয়েছি। তাদের সুন্দর ভবিষ্যৎ তাদের মাতৃভূমিতে আছে। তাদের সুন্দর ভবিষ্যতের জন্য তাই তাদের নিজ দেশে ফেরত পাঠানোর কাজ করতে হবে।’

মন্ত্রী বলেন, ‘তারা (ইউএনএইচসিআর) রোহিঙ্গাদের নিয়ে দীর্ঘমেয়াদি প্রোগ্রাম হাতে নিয়েছে। আমরা বলেছি, না আমরা এটা গ্রহণ করতে পারছি না। রোহিঙ্গা সমস্যা সাময়িক। এ নিয়ে ট্যাম্পোরারি কর্মসূচি হাতে নিতে হবে। আমরা আমাদের এই কথা তাদের জানিয়ে দিয়েছি।’

এদিকে পররাষ্ট্রমন্ত্রীর এই কড়া প্রতিক্রিয়ায় সুর বদলেছে বিশ্বব্যাংক। তারা মঙ্গলবার নিজেদের ওয়েবসাইটে দেয়া বিবৃতিতে বলছে, শরণার্থী বিষয়ে বাংলাদেশসহ কোনো দেশকেই সুনির্দিষ্ট প্রস্তাব দেয়নি তারা। যতদিন রোহিঙ্গারা তাদের দেশে ফেরত না যাচ্ছে, ততদিন সহায়তা অব্যাহত রাখারও অঙ্গীকার করেছে বৈশ্বিক এই দাতা সংস্থা।

আরও পড়ুন:
আবর্জনার শহরে পরিণত হচ্ছে হবিগঞ্জ
শীতলক্ষ্যা পারের আরও দেড় শতাধিক অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ
সংস্কৃতি চর্চার কেন্দ্র এখন ভাগাড়
একটি উদ্যোগ বদলে দিলো চিত্র

শেয়ার করুন

ম্যাজিস্ট্রেট কি কম্পিউটার পোড়ানোর ক্ষমতা রাখেন?

ম্যাজিস্ট্রেট কি কম্পিউটার পোড়ানোর ক্ষমতা রাখেন?

ভ্রাম্যমাণ আদালত আইনে ‘প্রয়োজনে জব্দকৃত বস্তু বিলিবন্দেজ (disposal)’ করার ক্ষমতা নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের রয়েছে। তবে আইন বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এই ডিজপোজালের অর্থ জব্দ করা বস্তু তাৎক্ষণিকভাবে ধ্বংস করে দেয়া নয়। রেজওয়ানের কম্পিউটারের পর্নোগ্রাফি ধ্বংসের আইনি এখতিয়ার রাখেন ম্যাজিস্ট্রেট, এর পরিবর্তে তিনি কম্পিউটার পুড়িয়ে দিয়ে ক্ষমতার অপব্যবহার করেছেন।  

সাতক্ষীরায় ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযানের সময় এক দোকানিকে জরিমানা করার পাশাপাশি জনসমক্ষে তার কম্পিউটার পুড়িয়ে দেয়ার ঘটনা নিয়ে চলছে আলোচনা।

শাটডাউনের মধ্যে রোববার বিকেলের এ ঘটনা ছড়িয়েছে ফেসবুকে। নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট জব্দ করা মালামাল এভাবে পুড়িয়ে দিতে পারেন কি না, এমন প্রশ্ন তুলেছেন অনেকে। তবে ম্যাজিস্ট্রেট আসাদুজ্জামানের দাবি, আইনের মধ্যে থেকেই তিনি কম্পিউটার পুড়িয়েছেন। আগামীতেও এ ধরনের অভিযান চলবে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, সাতক্ষীরা সদর উপজেলার আবাদেরহাট এলাকায় টেলিকম ব্যবসায়ী রেজওয়ান সরদারের দোকানে রোববার অভিযান চালায় উপজেলার সহকারী কমিশনার (ভূমি) আসাদুজ্জামানের নেতৃত্বে ভ্রাম্যমাণ আদালত।

রেজওয়ান নিউজবাংলাকে বলেন, ‘বিকেল ৪টার দিকে আমার বাড়িতে বিদ্যুতের সমস্যার কারণে দোকানে সরঞ্জাম নিতে আসি। এ সময় দোকান খোলা দেখে সাতক্ষীরা সদর উপজেলার সহকারী কমিশনার (ভূমি) আসাদুজ্জামান আসেন। তিনি আমাকে এক হাজার টাকা জরিমানা করেন। এরপর আমার একমাত্র আয়ের উৎস দোকানে থাকা কম্পিউটারটি জব্দ করে জনসমক্ষে পুড়িয়ে দেন।’

তিনি বলেন, ‘এই কম্পিউটারের ওপর চলত আমার ছয় সদস্যের সংসার। দাদি, বাবা-মা, স্ত্রী নিয়ে আমার সেই সংসার এখন প্রায় অচল। লকডাউনে এমনিতেই খুব খারাপ অবস্থা, তার ওপর ব্যবসার কম্পিউটার পুড়িয়ে দেয়ায় আমি নিঃস্ব হয়ে গেছি।’

ম্যাজিস্ট্রেট কি কম্পিউটার পোড়ানোর ক্ষমতা রাখেন?
ব্যবসায়ী রেজওয়ানের পুড়িয়ে দেয়া কম্পিউটারের যন্ত্রাংশ

অভিযানের পর নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আসাদুজ্জামান সাংবাদিকদের জানান, রেজওয়ানের দোকানের কম্পিউটারে পর্নোগ্রাফি ছিল। এ জন্য সেটি জব্দ করে ফৌজদারি দণ্ডবিধির ২৯২ ধারা অনুযায়ী পুড়িয়ে ফেলা হয়।

অশ্লীল পুস্তকাদি বিক্রয়কেন্দ্রিক অপরাধ ও এ-সংক্রান্ত ক্ষেত্রে অপরাধের শাস্তির বিষয়টি ফৌজদারি দণ্ডবিধির ২৯২ ধারায় উল্লেখ রয়েছে। তবে ওই ধারা অনুযায়ী, এ ধরনের অপরাধের সর্বোচ্চ শাস্তি তিন মাসের কারাদণ্ড অথবা জরিমানা বা উভয় দণ্ড। দণ্ডবিধির এই ধারায় জব্দ করা আলামত ধ্বংসের কোনো বিধান নেই।

বিষয়টি নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আসাদুজ্জামানকে জানানোর পর মঙ্গলবার তিনি নিউজবাংলাকে বলেন, নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেসির ১২ ধারা অনুসারে তিনি কম্পিউটারটি পোড়ানোর আদেশ দিয়েছিলেন।

মোবাইল কোর্ট আইন, ২০০৯ অনুসারে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনার সময়ে পুলিশ, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী বা সংশ্লিষ্ট সরকারি কোনো সংস্থা বা প্রতিষ্ঠানের সহায়তা প্রদানের বাধ্যবাধকতার বিষয়টি উল্লেখ রয়েছে ১২ ধারায়।

১২ (২) ধারায় বলা হয়েছে, ‘মোবাইল কোর্ট পরিচালনার ক্ষেত্রে, উক্ত মোবাইল কোর্ট পরিচালনাকারী এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট বা ডিস্ট্রিক্ট ম্যাজিস্ট্রেট এর সংশ্লিষ্ট অপরাধ সংশ্লেষে তল্লাশি (search), জব্দ (seizure) এবং প্রয়োজনে জব্দকৃত বস্তু বিলিবন্দেজ (disposal) করিবার ক্ষমতা থাকিবে।’

আইন বিশেষজ্ঞরা কী বলছেন

ভ্রাম্যমাণ আদালত আইনে ‘প্রয়োজনে জব্দকৃত বস্তু বিলিবন্দেজ (disposal)’ করার ক্ষমতা নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের রয়েছে। তবে আইন বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এই ডিজপোজালের অর্থ জব্দ করা বস্তু তাৎক্ষণিকভাবে ধ্বংস করে দেয়া নয়। রেজওয়ানের কম্পিউটারে পর্নোগ্রাফি থাকলে সেগুলো ধ্বংসের আইনি এখতিয়ার রাখেন ম্যাজিস্ট্রেট, এর পরিবর্তে কম্পিউটার পুড়িয়ে দিয়ে তিনি ক্ষমতার অপব্যবহার করেছেন।

ম্যাজিস্ট্রেট কি কম্পিউটার পোড়ানোর ক্ষমতা রাখেন?

আপিল বিভাগের সাবেক বিচারপতি নিজামুল হক নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আমি মনে করি কম্পিউটার পোড়ানো ঠিক হয়নি। মোবাইল কোর্ট এমনভাবে একটা জিনিস পুড়িয়ে দেবে বা ধ্বংস করে দেবে তা গ্রহণ করা যায় না।’

সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী জ্যোতির্ময় বড়ুয়া নিউজবাংলাকে বলেন, ‘ভিডিও যেখানে পাওয়া গেল, সেটা তো ধ্বংস করা যাবে না। কেউ ক্যামেরায় ছবি তুললে ক্যামেরা তো ভেঙে ফেলা যাবে না, বরং ক্যামেরার ছবিগুলো ধ্বংস করা যাবে। যে ম্যাটেরিয়ালটা সাবজেক্ট ম্যাটার, সেটার বাইরে কেন যাবেন। এটা তার (ম্যাজিস্ট্রেট) এখতিয়ার নাই।’

এ অবস্থায় আইনি প্রতিকার চাওয়ার সুযোগ আছে কি না, জানতে চাইলে জ্যোতির্ময় বড়ুয়া বলেন, ‘যার কম্পিউটার পুড়িয়েছে, তিনি সরকারের কাছে ক্ষতিপূরণ চেয়ে দেওয়ানি মামলা করতে পারবেন।’

‘এ ক্ষেত্রে পদ্ধতি হলো, মোবাইল কোর্টে মামলাটি যখন নিষ্পত্তি হয়ে যাবে, সেটা তো আর লংটার্ম না, সামারি প্রসিডিং। তার কম্পিউটারটা যে জব্দ করা হয়েছে সেটার তো ডকুমেন্টে থাকবে। জব্দ তালিকা দেখিয়েই তিনি (রেজওয়ান) ক্ষতিপূরণ চাইতে পারবেন।’

তবে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, রেজওয়ানকে কম্পিউটার জব্দসংক্রান্ত কোনো নথি দেননি নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আসাদুজ্জামান। তাকে কেবল এক হাজার টাকা জরিমানা করার একটি রসিদ দেয়া হয়েছে।

ম্যাজিস্ট্রেট কি কম্পিউটার পোড়ানোর ক্ষমতা রাখেন?
উপজেলার সহকারী কমিশনার (ভূমি) আসাদুজ্জামানের নেতৃত্বে চলে অভিযান

মোবাইল কোর্ট আইনের ১৪ ধারায় ‘সরল বিশ্বাসে কৃত কার্য রক্ষণ’ সংক্রান্ত সুরক্ষা দেয়া হয়েছে। সেখানে বলা হয়েছে, ‘এই আইন বা তদধীন প্রণীত বিধির অধীন সরল বিশ্বাসে কৃত, বা কৃত বলিয়া বিবেচিত, কোন কার্যের জন্য কোনো ব্যক্তি ক্ষতিগ্রস্ত হইলে তিনি মোবাইল কোর্ট পরিচালনাকারী এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট বা ডিস্ট্রিক্ট ম্যাজিস্ট্রেট বা মোবাইল কোর্ট পরিচালনার সহিত সংশ্লিষ্ট অন্য কোনো কর্মকর্তা বা কর্মচারীর বিরুদ্ধে কোনো দেওয়ানি বা ফৌজদারি মামলা বা অন্য কোনো প্রকার আইনগত কার্যধারা রুজু করিতে পারিবেন না।’

এমন অবস্থায় ক্ষতিগ্রস্ত কেউ কী করে আইনি প্রতিকার পাবেন, এমন প্রশ্নে জ্যোতির্ময় বড়ুয়া নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আইনে তো আর সবকিছু লেখা থাকে না। আর এটা তো সরল বিশ্বাসে হয়েছে এমন কিছুও না।’

সাতক্ষীরার জজ কোর্টের অতিরিক্ত পিপি ফাহিমুল হক কিসলু নিউজবাংলাকে বলেন, ‘সমাজ ও রাষ্ট্রের জন্য ক্ষতিকর কোনো বেআইনি দ্রব্য বা পণ্য পুড়িয়ে বা অন্য কোনোভাবে বিনষ্ট করতে গেলে আদালতের নির্দেশ থাকতে হবে। সে ক্ষেত্রে নিয়মিত মামলা হতে হবে, সেই মামলার তদন্ত কর্মকর্তা থাকবেন। তারপর আদালত আলামত ধ্বংসের নির্দেশ দিলে তা ধ্বংস করা যেতে পারে।’

তিনি বলেন, ‘কম্পিউটারে কোনো অশ্লীল ছবি বা ভিডিও থাকলে শুধু সেগুলো নষ্ট করা যেতে পারে। তাই বলে কম্পিউটার পুড়িয়ে দেয়া আইনসিদ্ধ নয়।’

আরও পড়ুন:
আবর্জনার শহরে পরিণত হচ্ছে হবিগঞ্জ
শীতলক্ষ্যা পারের আরও দেড় শতাধিক অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ
সংস্কৃতি চর্চার কেন্দ্র এখন ভাগাড়
একটি উদ্যোগ বদলে দিলো চিত্র

শেয়ার করুন

২০১৯ এর মতো এবারও ভয়ংকর ডেঙ্গু

২০১৯ এর মতো এবারও ভয়ংকর ডেঙ্গু

ডেঙ্গু ছড়ানোর জন্য দায়ী এডিস মশা।

এ বছর শনাক্ত রোগীর বেশির ভাগই ডেঙ্গু ভাইরাসের সেরোটাইপ থ্রি ভ্যারিয়েন্টে আক্রান্ত। দুই বছর আগেও এ ধরনের ভ্যারিয়েন্টে বেশি মানুষ আক্রান্ত হয়েছিলেন। ডেঙ্গুর এখন পর্যন্ত চারটি ভ্যারিয়েন্ট পাওয়া গেছে, যার মধ্যে সেরোটাইপ থ্রি বেশি সংক্রমিত করতে সক্ষম।

দেশে করোনাভাইরাস সংক্রমণের মধ্যেই ডেঙ্গু আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা বাড়ছে। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এ বছর ডেঙ্গুর যে ভ্যারিয়েন্টটি বেশি ছড়াচ্ছে, সেই একই ভ্যারিয়েন্ট ২০১৯ সালে বিপর্যয় ঘটিয়েছিল।

চলতি বছর এখন পর্যন্ত (রোববার) সারা দেশে ডেঙ্গু শনাক্ত রোগীর সংখ্যা ৩ হাজার ১৮২। এর মধ্যে জুলাইয়ে শনাক্ত হয়েছেন ২ হাজার ২৮৬ জন।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের তথ্য অনুযায়ী, সোমবার রাজধানীর বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন ৯৭৮ জন ডেঙ্গু আক্রান্ত রোগী। এর মধ্যে বেশ কয়েকজন করোনাতেও আক্রান্ত বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকেরা।

এর আগে গত বছর সারা দেশে ডেঙ্গু শনাক্ত হয়েছিল ১ হাজার ৪০৫ জনের, যাদের মধ্যে ছয় জন মারা যান। এর আগের বছর ২০১৯ সালে ডেঙ্গুর ভয়াবহ বিস্তার ঘটে। সেবার আক্রান্তের সংখ্যা ছিল ১ লাখের বেশি, যাদের মধ্যে মারা যান ১৭৯ জন।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন এ বছর শনাক্ত রোগীর বেশির ভাগই ডেঙ্গু ভাইরাসের সেরোটাইপ থ্রি ভ্যারিয়েন্টে আক্রান্ত। দুই বছর আগেও এ ধরনের ভ্যারিয়েন্টে বেশি মানুষ আক্রান্ত হয়েছিলেন। ডেঙ্গুর এখন পর্যন্ত চারটি ভ্যারিয়েন্ট পাওয়া গেছে, যার মধ্যে সেরোটাইপ থ্রি বেশি সংক্রমিত করতে সক্ষম।

রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের (আইডিসিআর) প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা এএসএম আলমগীর নিউজবাংলাকে বলেন, ‘এবারও ডেঙ্গুর টাইপ থ্রি বেশি মানুষকে আক্রান্ত করছে। এবার করোনা সংক্রমণের মধ্যে ডেঙ্গুর প্রাদুর্ভাব নিয়ে একটু বেশি সতর্ক হতে হবে।’

ঢাকা মেডিক্যাল কলেজের সহযোগী অধ্যাপক মো. মোতলেবুর রহমান নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আমাদের কাছে মনে হয়েছে, এবার ডেঙ্গুর টাইপ সি-তে আক্রান্তের সংখ্যা বেশি। এখনকার রোগীদের যে লক্ষণ দেখা দিচ্ছে তা হল দ্রুত পানিশূন্যতা দেখা দিচ্ছে। তবে অন্য উপসর্গের কোনো পরিবর্তন হয়নি। আগের মতোই মাথা ব্যথা, চোখ জ্বলা, বমি, পাতলা পায়খানা এগুলো হচ্ছে।’

ঢাকা মেডিক্যাল কলেজের আরেক সহযোগী অধ্যাপক পার্থ প্রতিম দাশ নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আমি যেসব রোগী দেখেছি তাদের হাই ফিভার রয়েছে। কিছু কিছু রোগীর বমি ও ডায়রিয়া রয়েছে। যদিও এটা গতবারও ছিল।’

২০১৯ এর মতো এবারও ভয়ংকর ডেঙ্গু

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের কীটতত্ত্ব বিভাগের অধ্যাপক কবিরুল বাশার নিউজবাংলাকে বলেন, ‘ডেঙ্গু ভাইরাসের আসলে চারটি সেরোটাইপ রয়েছে। টাইপ ওয়ান, টাইপ টু, টাইপ থ্রি, টাইপ ফোর। এবার ডেঙ্গু টাইপ থ্রি দিয়ে জ্বরটা বেশি হচ্ছে।

এ বছর কেনো সেরোপাইট থ্রি বেশি সক্রিয়, সেই প্রশ্নে অধ্যাপক কবিরুল বাশার বলেন, ‘এই চারটার মধ্যে কোনো একটা ভাইরাসের বিস্তার কোনো বছর বেশি হয়। ২০১৯ সালে টাইপ থ্রি বেশি হয়েছিল। গত বছরেও এই টাইপ থাকলেও তখন ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণের মধ্যে ছিল।’

ডেঙ্গুর চারটি ধরনের মধ্যে কোনটি বেশি প্রাণঘাতী, সে বিষয়ে তেমন কোনো তথ্য নেই জানিয়ে তিনি বলেন, ‘প্রায় সবগুলোই এক রকমের। তবে কিছু টাইপ বেশি সংক্রামক, যেমন করোনার ডেল্টা ভ্যারিয়েন্ট বেশি সংক্রমিত করে। ২০১৯ সালে টাইপ থ্রি বেশি ছড়িয়েছিল, তাই বলা যায় এটার সংক্রমণের হার সবচেয়ে বেশি।’

কীটতত্ত্ববিদ কবিরুল বাশার বলেন, ‘ঢাকা থেকে আক্রান্ত অনেক রোগী গ্রামের বাড়িতে গেছেন। ফলে সেখানেও ডেঙ্গু ছড়াতে পারে। কারণ অন্যান্য জেলাতেও এডিস মশা আছে। আক্রান্তকে কামড়ানোর পর ভাইরাস মশা থেকে আবার সুস্থ মানুষের দেহে সংক্রমিত হয়।’

তিনি বলেন, ‘ডেঙ্গু ভাইরাস এডিস ইজিপটাই মশার মাধ্যমে সাধারণত ছড়ায়। আরেকটি আছে এডিস এলবোপিকটাস, তবে ৯৫ ভাগ ক্ষেত্রে এডিস ইজিপটাই ডেঙ্গুর বাহক।’

আরও পড়ুন:
আবর্জনার শহরে পরিণত হচ্ছে হবিগঞ্জ
শীতলক্ষ্যা পারের আরও দেড় শতাধিক অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ
সংস্কৃতি চর্চার কেন্দ্র এখন ভাগাড়
একটি উদ্যোগ বদলে দিলো চিত্র

শেয়ার করুন

করোনার সঙ্গে ডেঙ্গু ভয়ংকর

করোনার সঙ্গে ডেঙ্গু ভয়ংকর

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, কোভিড মহামারির মধ্যে করোনা ও ডেঙ্গু নিয়ে যেসব রোগী হাসপাতালে আসছেন তাদের অনেকেরই স্বাস্থ্য জটিলতা বেশি। আগামীতে এ ধরনের রোগী বাড়লে পরিস্থিতি মারাত্মক হতে পারে।

করোনাভাইরাস মহামারির মধ্যে ডেঙ্গু বিপর্যয় উদ্বিগ্ন করে তুলেছে চিকিৎসকদের। তারা বলছেন, দুটি রোগের আক্রমণ একসঙ্গে হলে চিকিৎসা পদ্ধতির জটিলতা বাড়ে। এতে বেশি ঝুঁকি তৈরি হয় আক্রান্ত রোগীর।

চলতি বছর এখন পর্যন্ত (রোববার) সারা দেশে ডেঙ্গু শনাক্ত রোগীর সংখ্যা ২ হাজার ৮৯৫। এর মধ্যে জুলাইয়ে শনাক্ত হয়েছেন ২ হাজার ২৮৬ জন।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের তথ্য অনুযায়ী, রোববার রাজধানীর বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন ৮২৮ জন ডেঙ্গু আক্রান্ত রোগী। এর মধ্যে বেশ কয়েকজন করোনাতেও আক্রান্ত বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকেরা।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, কোভিড মহামারির মধ্যে করোনা ও ডেঙ্গু নিয়ে যেসব রোগী হাসপাতালে আসছেন তাদের অনেকেরই স্বাস্থ্য জটিলতা বেশি। আগামীতে এ ধরনের রোগী বাড়লে পরিস্থিতি মারাত্মক হতে পারে।

এর কারণ ব্যাখ্যা করে বিশেষজ্ঞরা বলছেন, করোনা ও ডেঙ্গুর চিকিৎসা আলাদা হওয়ায় সমস্যা তৈরি হচ্ছে। করোনা আক্রান্ত অনেকের ক্ষেত্রে রক্ত জমাটের প্রবণতা থাকে। তবে ডেঙ্গুর ক্ষেত্রে বিষয়টি আলাদা। ফলে দুটি রোগের চিকিৎসা পদ্ধতিতেও পার্থক্য রয়েছে।

ঢাকা মেডিক্যাল কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক ডা. টিটো মিঞা নিউজবাংলাকে বলেন, ‘করোনা এবং ডেঙ্গু একসঙ্গে ভয়াবহ হতে পারে। দুইটা যখন একসঙ্গে থাকবে তখন কিছু জিনিস বেড়ে যেতে পারে, যদি কেয়ারফুল না হওয়া যায়। মৃত্যুঝুঁকি বেড়ে যায় দুইটা একসঙ্গে হলে।’

তিনি বলেন, ‘অনেক ক্ষেত্রে রোগী দেরিতে হাসপাতালে আসে। রোগীদেরও তাদের নিজেদের স্বাস্থ্যের বিষয়ে সন্দেহ করতে হবে। আমরাও ম্যানেজ করার চেষ্টা করব।’

ডা. টিটো মিঞা বলেন, ‘কোনো কোনো ডেঙ্গুতে কোনো বিপদ থাকে না। কারণ সব ক্ষেত্রে ডেঙ্গু রোগীর ব্লিডিং হয় না। তবে ব্লিডিং থাকলে আর যদি করোনা থাকে তবে ব্লাড সিনাপ ব্যবহারের দরকার নেই। প্লাটিলেট কমে গেলে ভীত হওয়া যাবে না যতক্ষণ না ব্লিডিং হয়।’

তিনি জানান, কেউ একসঙ্গে করোনা ও ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে মারা গেলে করোনা আক্রান্ত হিসেবেই মৃত্যু নথিভুক্ত হচ্ছে।

রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের (আইইডিসিআর) প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা এএসএম আলমগীর নিউজবাংলাকে বলেন, ‘দুইটা (করোনা ও ডেঙ্গু) একসঙ্গে হলে একটা বড় ইফেক্ট তো হবেই। এ ধরনের পেশেন্টকে ট্রিটমেন্টের জন্য করোনা হাসপাতালে ভর্তি হতে হবে।’

এ ধরনের ক্ষেত্রে জটিলতার ব্যাখ্যা দিয়ে তিনি বলেন, ‘ডেঙ্গুতে যদি ব্লিডিং থাকে, সে রকম ক্ষেত্রে আসলেই কঠিন অবস্থা হবে।’

তবে খুব বেশি উদ্বিগ্ন না হওয়ার পরামর্শ দিচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ব্যক্তিগত চিকিৎসক এ বি এম আবদুল্লাহ।

তিনি নিউজবাংলাকে বলেন, ‘করোনা বা ডেঙ্গু যেটাই হোক না কেন, সেটি কিন্তু সব ক্ষেত্রে খারাপ না। বেশিরভাগ রোগীই বাসায় থেকে ভালো হচ্ছে।

‘দুটি একসঙ্গে হলেই যে খুব খারাপ হবে, তা নয়। তবে খারাপ হতে পারে। ডেঙ্গুর হেমোরেজিক রোগী বেশি খারাপ হয়, যেটাকে শক সিনড্রোম বলে।’

করোনার সঙ্গে ডেঙ্গু ভয়ংকর

ডেঙ্গু ও করোনার লক্ষণ প্রায় কাছাকাছি উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘এ ক্ষেত্রে এখন অবহেলা করা যাবে না। অনেকেই বাসায় ওষুধ খান। তবে শুধু নাপা খেতে হবে। অন্য কোনো ব্যথার ওষুধ খাওয়া যাবে না। খেলে রক্তক্ষরণের ঝুঁকি বেড়ে যাবে।

‘কেউ একসঙ্গে দুটো পজেটিভ হলে অবশ্যই ডাক্তার সিনড্রোম দেখে ওষুধ দেবেন। যেহেতু এটা ভাইরাস, এর কোনো নির্দিষ্ট ওষুধ নেই। তাই আলাদা আলাদা লক্ষণ অনুযায়ী সেবা দিতে হবে।’

ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের মেডিসিন বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ডা. মো. মোতলেবুর রহমান নিউজবাংলাকে বলেন, ‘কারও যদি করোনা ও ডেঙ্গু একসঙ্গে হয় তাহলে কোনোভাবেই তার বাসায় থাকা উচিত হবে না। তাকে হাসপাতালে ভর্তি হতে হবে।’

এ ধরনের রোগীদের বিপরীতমুখী চিকিৎসা চালিয়ে যেতে হচ্ছে জানিয়ে এ অধ্যাপক বলেন, ‘করোনাতে রক্ত জমাট বাঁধার একটা প্রবণতা থাকে। আমরা রক্ত পাতলা করার ওষুধ দিচ্ছি। অন্যদিকে ডেঙ্গু আক্রান্তদের রক্তপাতের সম্ভাবনা থাকে। তাই রক্ত পাতলা করার ওষুধ দিলে ব্লিডিং হওয়ার সম্ভাবনা থাকে। এসব ক্ষেত্রে একটু কন্ট্রোভার্সিয়াল কন্ডিশন দাঁড়িয়েছে।’

একসঙ্গে ডেঙ্গু ও করোনা আক্রান্ত রোগী এখন পর্যন্ত অনেকটা কম হলেও চিকিৎসকদের আশঙ্কা, যেকোনো সময় এ সংখ্যা বেড়ে যেতে পারে।

ঢাকা মেডিক্যাল কলেজের মেডিসিন বিভাগের আরেক সহযোগী অধ্যাপক ডা. পার্থ প্রতিম দাশ নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আমার কাছে এখন দিনে ১০টা জ্বরের রোগী এলে তার মধ্যে তিনটা বা চারটা করোনার রোগী পাচ্ছি। সেই সঙ্গে দুই থেকে তিনটা ডেঙ্গু রোগী পাচ্ছি।

‘তবে প্রতিদিন না হলেও এক-দুই দিন পর একজনকে পাচ্ছি, যার দুইটাই পজেটিভ আছে।’

তিনি বলেন, ‘এমন অনেক হচ্ছে যে, ডেঙ্গুর জন্য ট্রিটমেন্ট নিতে গিয়ে কেউ করোনা পজেটিভ হয়েছে। আবার একইভাবে করোনা চিকিৎসা চলার সময় ডেঙ্গু পজেটিভ হয়েছে। এখন যদি ডেঙ্গু কন্ট্রোল করা না যায়, তবে মারাত্মক সমস্যা হবে।’

আরও পড়ুন:
আবর্জনার শহরে পরিণত হচ্ছে হবিগঞ্জ
শীতলক্ষ্যা পারের আরও দেড় শতাধিক অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ
সংস্কৃতি চর্চার কেন্দ্র এখন ভাগাড়
একটি উদ্যোগ বদলে দিলো চিত্র

শেয়ার করুন