‘তিনি ফিরে এসেছিলেন বলেই’

player
‘তিনি ফিরে এসেছিলেন বলেই’

শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে নিউজবাংলার বিশেষ অনুষ্ঠানের সঞ্চালক ছিলেন সিনিয়র সাংবাদিক মনজুরুল আহসান বুলবুল। আলোচনায় অংশ নেন বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর ড. আতিউর রহমান, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য ড. আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক এবং নিউজবাংলা টোয়েন্টিফোর ডটকম-এর সম্পাদকমণ্ডলীর সভাপতি ড. চৌধুরী নাফিজ সরাফাত।

আওয়ামী লীগ সভাপতি ও বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবসে বিশেষ আলোচনা অনুষ্ঠান করেছে নিউজবাংলা।

‘তিনি ফিরে এসেছিলেন বলেই’ শিরোনামে শুক্রবার রাত ১০টায় এই অনুষ্ঠানে সঞ্চালক ছিলেন সিনিয়র সাংবাদিক মনজুরুল আহসান বুলবুল। আলোচনায় অংশ নেন বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর ড. আতিউর রহমান, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য ড. আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক এবং নিউজবাংলা টোয়েন্টিফোর ডটকম-এর সম্পাদকমণ্ডলীর সভাপতি ড. চৌধুরী নাফিজ সরাফাত।

সেনা সমর্থিত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের জরুরি অবস্থা চলার সময়ে ২০০৭ সালের ৭ মে যুক্তরাষ্ট্রে চিকিৎসা শেষে নানা প্রতিকূলতার মধ্যেই দেশে ফিরে আসেন শেখ হাসিনা। বঙ্গবন্ধুকন্যাকে দেশে ফিরতে বিভিন্নভাবে বাধা দিয়েও সফল হয়নি সে সময়ের তত্ত্বাবধায়ক সরকার।

এরপর ২০০৮ সালের ২৯ ডিসেম্বর নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন মহাজোট নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা লাভ করে। শেখ হাসিনা ২০০৯ সালের ৬ জানুয়ারি দ্বিতীয়বারের মতো দেশের প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব নেন। এরপর আরও দুই দফা রাষ্ট্র পরিচালনার দায়িত্ব পান শেখ হাসিনা।

নিউজবাংলার বিশেষ আয়োজনে দেশ পরিচালনায় বঙ্গবন্ধুকন্যার দক্ষ ও কুশলী নেতৃত্বের বিভিন্ন দিক তুলে ধরেন আলোচকেরা।

শেখ হাসিনা ভবিষ্যৎদ্রষ্টা

বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর ড. আতিউর রহমান ২০০৭ সালের পরিস্থিতির উল্লেখ করে বলেন, ‘সেই সময়টায় সেনাশাসিত একটা সরকার চেপে বসেছিল এবং শেখ হাসিনার মতো একজন নেত্রী যদি দাঁড়িয়ে না যেতেন তাহলে সেটা হয়ত মিয়ানমারের মতো চলতেই থাকত। আরো অনেক অঘটন আমাদের এই দেশে দেখতে হতো। আমি খুব কাছে থেকে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে দেখেছি। তার সঙ্গে কাজ করেছি সেই সংকটকালে। তিনি ফিরে এলেন ২০০৭ সালে। তার কিছুদিনের মধ্যেই দেখলাম ২০০৭ সালের ১৬ জুলাই তিনি গ্রেপ্তার হলেন।’

ড. আতিউর রহমান বলেন, ‘জেলখানা থেকেও আমাদের সঙ্গে তার (শেখ হাসিনা) যোগাযোগ হতো এবং সেই সময়ে তিনি বাংলাদেশের ভবিষ্যতের কথা চিন্তা করছিলেন। পরবর্তীকালে তিনি যে দিন বদলের সনদ তৈরি করেছিলেন, সেই প্রক্রিয়ার সঙ্গে আমরা জড়িত ছিলাম। তিনি বাংলাদেশের প্রতিটি ক্ষেত্রে, ভবিষ্যতের মুক্তিযুদ্ধের বাংলাদেশকে কোন দিকে নিয়ে যাবেন সেসব বিষয়গুলো নিয়ে ভাবছিলেন এবং নোট রাখছিলেন।

‘আমরা প্রতিটি ক্ষেত্রে তার সুবিবেচনা দেখেছি। আমাদের বড়ই সৌভাগ্য যে এমন একজন নেত্রীকে আমরা পেয়েছি যিনি মানুষকে প্রধান গুরুত্ব দিয়ে থাকেন এবং তার সেই রূপকল্পের কথা, সেই রূপকল্পই শুধু নয়, তিনি আরও ভবিষ্যৎ দেখছেন, আরও অনেক দূর দেখতে পান শেখ হাসিনা। আমরা দেখতে পেয়েছি যে, তিনি ২০৪১ সালে উন্নত বাংলাদেশ গড়বার স্বপ্ন দেখছেন। যখন তিনি বিরোধী দলে ছিলেন তখনও তিনি এই সব বিষয় নিয়ে ভাবতেন।’

ড. আতিউর রহমান বলেন, ‘আমার বড়ই সৌভাগ্য হয়েছিল যে শুধু সেই দিন বদলের সনদ প্রণয়নের কথা না, পরবর্তীকালে তার সঙ্গে অর্থনৈতিক টিমে কাজ করবার। তিনি আমাদেরকে তার সেই যাত্রায় যুক্ত করেছিলেন এবং বাংলাদেশের যে অন্তর্ভুক্তিমূলক উন্নয়ন, সেটি তারই নির্দেশনায় এগিয়ে গেছে এবং বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় ব্যাংককে একটি জনমুখী, মানবিক অন্তর্ভুক্তিমূলক একটি কেন্দ্রীয় ব্যাংক করার পুরো প্রক্রিয়ার সম্পূর্ণ নেতৃত্ব তিনি দিয়েছেন।’

ড. আতিউর রহমান বলেন, ‘আমাদের রিজার্ভ আজকে ৪৫ বিলিয়ন ডলারের উপরে। আমাদের প্রবাস আয় গত ১০ মাসে প্রায় ৪০ শতাংশ বেড়েছে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী অনেক দূর দেখতে পান। এবং সেই দেখতে পান বলেই তিনি কয়েকটি বিষয়ের উপরে খুব গুরুত্ব দিচ্ছেন এবং আমার ধারণা আগামীতেও সেই গুরুত্বটি বজায় থাকবে।

‘২০০৮ সালে তিনি বলেছিলেন, বাংলাদেশকে ডিজিটাল করবেন। সেখান থেকে বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে। সুতরাং আগামী দিনের অর্থনীতি হবে ডিজিটাল, আগামী দিনের সমস্ত বিকাশ হবে ডিজিটাল এবং সেটার সূত্রপাত কিন্তু তিনিই করেছেন।’

মেগা প্রকল্পের উল্লেখ করে ড. আতিউর রহমান বলেন, ‘ইনফাস্ট্রাকচার যে দরকার এবং পদ্মা সেতু কী প্রক্রিয়ায় তৈরি হচ্ছে সেই সাথেও আমরা জড়িত ছিলাম। আমরা দেখছি একজন সাহসী নেত্রী কেমন করে ৩০ হাজার কোটি টাকারও বেশি একটি প্রকল্পে বলেছেন যে, আপনাদের (বিশ্বব্যাংক) কোনো টাকা লাগবে না। আমরা আমাদের অর্থ দিয়েই এটা তৈরি করব এবং তিনি সেটা তৈরি করে দেখাচ্ছেন। এখন পদ্মা সেতু দৃশ্যমান।

‘একই সঙ্গে স্পেশাল ইকোনমিক জোন তিনি করেছেন। এই স্পেশাল ইকোনোমিক জোনগুলোর দিকে নজর দিলেই আমরা বুঝতে পারবো এগুলো বাংলাদেশের চেহারা বদলে ফেলবে।’

বঙ্গবন্ধুর গুণাবলি শেখ হাসিনার মাঝে

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য ড. আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক বলেন, ‘আমি সেই দিনটির কথা ভুলতে পারব না। সেদিন সকালে আমি বিশ্ববিদ্যালয়ে যাওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছি। তখনও আমরা জানি না এ ধরনের কোনো নিষেধাজ্ঞা আসছে বা আরোপ হয়েছে। সেনা সদর থেকে একজন বিগ্রেডিয়ার টেলিফোন করে খুব রূঢ় ভাষায় বলতে চাইলেন, আপনারা বিশ্ববিদ্যালয়ে কোন ধরনের কোনো প্রতিবাদ, কোনো ধরনের কোনো আন্দোলনে যাবেন না। আপনাদেরকে সতর্ক করে দিচ্ছি, আপনারা বিশ্ববিদ্যালয়ের নৈমিত্তিক কাজের মধ্যেই নিজেদেরকে সীমাবদ্ধ রাখবেন।’

ড. আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক বলেন, ‘কিছুক্ষণ পরেই খবর আসতে শুরু করল যে, শেখ হাসিনাকে বিমানে উঠতে দেওয়া হচ্ছে না। সেই অনুযায়ী একটি প্রেসনোট জারি করা হয়েছে সরকারের পক্ষ থেকে। এবং শেখ হাসিনা সাংবাদিকদের তাৎক্ষণিকভাবে সাক্ষাৎকার দিয়ে বলছেন যে, এটি আমার আধিকার, আমি আমার দেশে ফিরে যাব, এবং দেশে ফিরে যাওয়ার পরে যদি তারা মনে করে আমার কোন অপরাধ আছে, তারা আমাকে জেলে দেবে, বিচার করবে। কিন্তু তারা আমাকে আমার দেশে যাওয়া থেকে বিরত রাখতে পারে না।’

সেনা সমর্থিত তত্ত্বাবধায়ক সরকার শেখ হাসিনাকে দেশে ফিরতে দিতে বাধ্য হয়েছিল উল্লেখ করে ড. আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক বলেন, ‘২০০৭ সালের ৭ মে তারিখে তিনি দেশে ফিরে আসলেন। সে দিন বিমানবন্দর থেকে শেখ হাসিনার বাসভবন পর্যন্ত রাস্তার দুই ধারে লোকে-লোকারণ্য। লক্ষ লক্ষ মানুষ সেখানে সমবেত হয়েছে শেখ হাসিনাকে শুভেচ্ছা জানাচ্ছে। ঠিক যে রকম দৃশ্য আমরা দেখেছিলাম ১৯৮১ সালে ১৭ মে তার প্রথম স্বদেশ প্রত্যাবর্তনের সময়।’

ড. আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক বলেন, ‘নেতৃত্বের গুণাবলির মাঝে আছে দূরদর্শিতা, দূরদৃষ্টি, প্রজ্ঞা, বিচক্ষণতা, বুঝতে পারা যে কীভাবে দেশকে ও সমাজকে এগিয়ে নিয়ে যেতে হবে। তার সঙ্গে থাকতে হবে মানবিক সংবেদনশীলতা, মানবতাবোধ, মানুষকে ভালোবাসা। যেটি বঙ্গবন্ধুর মাঝে দেখেছি আমরা সব সময় এবং স্বাভাবিকভাবেই বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার মাঝেও এই গুণগুলোই আমরা দেখতে পাই।’

নতুন বাংলাদেশ তৈরি করেছেন শেখ হাসিনা

নিউজবাংলা টোয়েন্টিফোর ডটকম-এর সম্পাদকমণ্ডলীর সভাপতি ড. চৌধুরী নাফিজ সরাফাত বলেন, আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা দেশে ফিরে আসার পর ২০০৮ সালের ডিসেম্বর নির্বাচনের পর ২০০৯ সালে শুরু হয় নতুন বাংলাদেশের যাত্রা। টানা তিন মেয়াদে তিনি প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করছেন এবং দেশকে এক অনন্য উচ্চতায় নিয়ে গেছেন। বাংলাদেশ এখন আর স্বল্পোন্নত (এলডিসি) দেশ নয়; এখন উন্নয়নশীল দেশ।’

ড. চৌধুরী নাফিজ সরাফাত বলেন, ‘বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা গড়ার স্বপ্ন বাস্তবায়নের জন্য ২০০৮ সালের নির্বাচনের আগেই শেখ হাসিনা ঘোষণা করেন রূপকল্প ২০২১। সেই নির্বাচনে নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জনের পরের গল্পটা শুধুই এগিয়ে যাওয়ার।

‘যে বাংলাদেশ এক সময় পরিচিত ছিল বন্যাকবলিত, দারিদ্রপীড়িত দেশ হিসেবে, সেই দেশই এখন সারা বিশ্বে উন্নয়নের রোল মডেল; অর্থনৈতিক উন্নয়নে বিশ্বের বিস্ময়। এটা কেবলই সম্ভব হয়েছে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দূরদর্শী এবং জাদুকরি নেতৃত্বের কারণে।’

বাংলাদেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নের প্রসঙ্গ টেনে ড. চৌধুরী নাফিজ সরাফাত বলেন, ‘অর্থনৈতিক সূচকের পাশাপাশি সামাজিক সূচকেও বাংলাদেশ অনেক উন্নতি করেছে এই ১২ বছরে। অনেক ক্ষেত্রে ভারত ও পাকিস্তানের চেয়েও এগিয়ে গেছে। দারিদ্র্য বিমোচন, শিক্ষা, স্বাস্থ্য, পরিবেশ উন্নয়নে বাংলাদেশের অগ্রগতি দেশের সীমা ছাড়িয়ে আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলেও এখন ব্যাপক আলোচিত। অর্থনীতিতে নোবেল বিজয়ী অমর্ত্য সেন সুযোগ পেলেই বাংলাদেশের এই সাফল্যের কথা দেশি-বিদেশি মানুষকে শোনান।’

ড. চৌধুরী নাফিজ সরাফাত বলেন, ‘করোনাভাইরাস মহামারির আগ পর্যন্ত বাংলাদেশের জিডিপি প্রবৃদ্ধি বেড়েই চলেছে। ২০০৮-৯ অর্থবছরে জিডিপি প্রবৃদ্ধির হার ছিল ৫ দশমিক ৭৪ শতাংশ। ধারাবাহিক অগ্রগতির পথ ধরে ২০১৮-১৯ অর্থবছরে ৮ দশমিক ১৫ শতাংশ প্রবৃদ্ধি অর্জন করে বাংলাদেশ। যা ছিল বাংলাদেশের ইতিহাসে সবচেয়ে বেশি প্রবৃদ্ধি। গত এক দশকে জিডিপি প্রবৃদ্ধির গড় হার ছিল ৬ দশমিক ৬ শতাংশ। আর চার বছরে এই হার ছিল ৭ শতাংশের উপরে।

‘তবে কোভিড-১৯ এর ধাক্কায় ২০১৯-২০ অর্থবছরে জিডিপি প্রবৃদ্ধি কিছুটা কমেছে, যা সারা দুনিয়াতেই কমেছে। তারপরেও বাংলাদেশে সেটা ছিল ৫ দশমিক ২৪ শতাংশ।’

ড. চৌধুরী নাফিজ সরাফাত বলেন, ‘জিডিপি প্রবৃদ্ধির সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বেড়েছে মাথাপিছু আয়। বাংলাদেশের মানুষের মাথাপিছু আয় এখন ২০৬৪ ডলার। ২০০৮-০৯ অর্থবছরে ছিল ৭৫৯ ডলার। এ হিসাবে দেখা যাচ্ছে, এক যুগে মাথাপিছু আয় প্রায় তিন গুণ বেড়েছে।

‘অর্থনীতির অন্যতম প্রধান সূচক মূল্যস্ফীতি বেশ কিছুদিন ধরে সহনীয় পর্যায়ে রয়েছে। ২০০৮-০৯ অর্থবছর শেষে মূল্যস্ফীতির হার ছিল ৭ দশমিক ৬ শতাংশ। এখন তা কমে ৫ দশমিক ৪৭ শতাংশে নেমে এসেছে।’

রেমিট্যান্স বা প্রবাস আয়ের পরিসংখ্যান দিয়ে তিনি বলেন, ‘অর্থনীতির সূচকগুলোর মধ্যে সবচেয়ে ভালো অবস্থায় আছে প্রবাসীদের পাঠানো রেমিট্যান্স বা প্রবাস আয়। প্রতিবছরই বাড়ছে অর্থনীতির গুরুত্বপূর্ণ এই সূচক। এমনকি, করোনাভাইরাস মহামারির মধ্যেও প্রবাসীদের পাঠানো রেমিট্যান্সের ইতিবাচক ধারা অব্যাহত রয়েছে।’

তিনি বলেন, ‘প্রতি বছর বাজেটের আকার যেমন বেড়েছে, রাজস্ব আদায়ের পরিমাণও তেমনি বেড়েছে। ২০০৮-০৯ অর্থবছরে ৬৪ হাজার ৫৭০ কোটি টাকার রাজস্ব আদায় হয়েছিল। গত ২০১৯-২০ অর্থবছরে তা বেড়ে ২ লাখ ১৮ হাজার ৪০৬ কোটি টাকায় দাঁড়ায়। চলতি অর্থবছরের আট মাসে (জুলাই-ফেব্রুয়ারি) আদায় হয়েছে ১ লাখ ৫৩ হাজার ১০৪ কোটি টাকা।

‘কৃষিতেও সরকারে সাফল্য ঈর্ষণীয়। মহামারিতে বিভিন্ন খাতের ক্ষতি হলেও কৃষি খাতের তেমন ক্ষতি হয়নি আমাদের দেশে। জনসংখ্যা বৃদ্ধি, কৃষিজমি কমতে থাকাসহ জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে বন্যা, খরা, লবণাক্ততা ও বৈরী প্রকৃতির মধ্যেও খাদ্যশস্য উৎপাদনে বাংলাদেশ এখন বিশ্বে উদাহরণ। ধান, গম ও ভুট্টায় বিশ্বের গড় উৎপাদনকে পেছনে ফেলে ক্রমেই এগিয়ে চলছে বাংলাদেশ। সবজি উৎপাদনে তৃতীয় আর মাছ উৎপাদনে বাংলাদেশ এখন বিশ্বে চতুর্থ অবস্থানে। এগুলো সবই সম্ভব হয়েছে শেখ হাসিনার বলিষ্ঠ নেতৃত্বের কারণে।’

ড. চৌধুরী নাফিজ সরাফাত বলেন, ‘তিনি (শেখ হাসিনা) ফিরে এসেছেন বলেই আমরা আজ নতুন বাংলাদেশ পেয়েছি। আজকে শক্তিশালী অর্থনীতির দেশ বাংলাদেশ। আমি নিজের এক্সপেরিয়েন্স শেয়ার করি, আমরা আগে যখন বিদেশে ট্রাভেল করতাম তখন আমাদের পাসপোর্ট একটা নেতিবাচক দৃষ্টিতে দেখা হতো। আর এখন আমরা যখন ট্রাভেল করি, বিভিন্ন দেশে যাই, অন্য দৃষ্টিতে আমাদের দেখে। আমাদের এখনকার আইডেন্টিটি অনেক সম্মানের। শুধুমাত্র তিনি ফিরে এসেছিলেন বলেই এটা সম্ভব হয়েছে।

‘আজকে নতুন বাংলাদেশের যে উন্নয়ন পদ্মাসেতু, মেট্রোরেল…। আমি যখন আমার অফিসে বসি তখন জানাল দিয়ে দেখতে পাই ঢাকায় আট লেনের সড়ক হয়েছে। এটা কোনোদিন চিন্তা করা যায়নি। যদি তিনি না আসতেন তাহলে এগুলো স্বপ্নের মতো থেকে যেত। এই বাংলাদেশকে তার বাবা দিয়ে গিয়েছিলেন, আর নতুন বাংলাদেশ তৈরি করেছেন শেখ হাসিনা।’

ড. চৌধুরী নাফিজ সরাফাত বলেন, ‘আমার সৌভাগ্য যে আমি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে অনেক দেশে সফর করার সুযোগ পেয়েছি। যে সম্মান আজকের বিশ্ব নেতৃত্ব মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে দেয়, সেটা তিনি অর্জন করে নিয়েছেন। কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো নিজের চেয়ার থেকে উঠে এসে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে কথা বলেছেন, তৎকালীন মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা প্রধানমন্ত্রীর পাশে এসে কথা বলেছেন। এই সম্মানের জায়গায় বাংলাদেশকে তিনি এনে দিয়েছেন।’

আরও পড়ুন:
ছবিতে নিউজবাংলার স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন
বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন নিউজবাংলার
কমনওয়েলথের সঙ্গী নিউজবাংলা
‘সাইবার হয়রানি’ নিয়ে আইনি পরামর্শ দেবেন মিতি-মেহেরবা
‘সাইবার হয়রানি’ নিয়ে আইনি পরামর্শ শনিবার নিউজবাংলায়

শেয়ার করুন

বাবার মৃত্যু সইতে পারেনি ছেলেও

বাবার মৃত্যু সইতে পারেনি ছেলেও

বাবা-ছেলের মৃত্যুতে গ্রামজুড়ে শোকের ছায়া নেমে এসেছে। ছবি: নিউজবাংলা

স্থানীয় ইউনিয়ন চেয়ারম্যান বলেন, ‘ছেলে জুলমত আলী সিঙ্গাপুর থেকে ১৮ দিন আগে বাড়িতে এসেছিলেন। শনিবার দুপুরে তার বাবা ছেলের বিয়ের জন্য পাত্রী দেখতে যান। আজ (রোববার) তার কাবিন হওয়ার কথা ছিল।’

ময়মনসিংহের ফুলপুরে বাবার মৃত্যুর শোক সইতে না পেরে প্রবাসফেরত ছেলে জুলমত আলীর মৃত্যু হয়েছে। ফুলপুর উপজেলার রামভদ্রপুর ইউনিয়নের গাইরা গ্রামের বাসিন্দা তারা।

শনিবার দিবাগত রাত ২টার দিকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন অবস্থায় বাবা আব্দুল জলিল আকন্দ ও রোববার ভোর ৪টার দিকে ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান ছেলে জুলমত।

রামভদ্রপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. রুকনুজ্জামান বিষয়টি নিউজবাংলাকে নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, শনিবার রাত ১০টার দিকে পঁচাত্তর বছর বয়সী আব্দুল জলিল আকন্দ নিজ এলাকায় ধর্মীয় ওয়াজ মাহফিল শুনে বাড়িতে এসে হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়েন। পরিবারের লোকজন চিকিৎসার জন্য তাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে রাত ২টার দিকে তিনি মারা যান।

পরে জলিলের মরদেহ বাড়িতে নিয়ে আসলে কান্নাকাটি করে অজ্ঞান হয়ে যান তার পঁচিশ বছর বয়সী ছেলে জুলমত আলী।

এ অবস্থায় জুলমতকে দ্রুত ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ভোর ৪টার দিকে তারও মৃত্যু হয়।

চেয়ারম্যান বলেন, ‘ছেলে জুলমত আলী সিঙ্গাপুর থেকে ১৮ দিন আগে বাড়িতে এসেছিলেন। শনিবার দুপুরে তার বাবা ছেলের বিয়ের জন্য পাত্রী দেখতে যান। আজ (রোববার) তার কাবিন হওয়ার কথা ছিল।’

চেয়ারম্যান জানান, বাবা-ছেলের এমন মৃত্যুতে এলাকায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে। শুক্রবার বিকেলে আসরের পর একসঙ্গে জানাজা শেষে বাবা-ছেলের মরদেহ দাফন করা হয়।

আরও পড়ুন:
ছবিতে নিউজবাংলার স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন
বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন নিউজবাংলার
কমনওয়েলথের সঙ্গী নিউজবাংলা
‘সাইবার হয়রানি’ নিয়ে আইনি পরামর্শ দেবেন মিতি-মেহেরবা
‘সাইবার হয়রানি’ নিয়ে আইনি পরামর্শ শনিবার নিউজবাংলায়

শেয়ার করুন

গ্রামীণ ইউনিক্লোর শীতবস্ত্র পেল ১৩০০ পরিবার

গ্রামীণ ইউনিক্লোর শীতবস্ত্র পেল ১৩০০ পরিবার

গ্রামীণ ইউনিক্লোর শীতবস্ত্র পেয়ে শীতার্ত দরিদ্র মানুষগুলোর মুখে স্বস্তির হাসি। ছবি: সংগৃহীত

গ্রামীণ ইউনিক্লোর ব্যবস্থাপনা পরিচালক নাজমুল হক বলেন, ‘সমাজের প্রতি দায়বদ্ধতা থেকে আমরা বিভিন্ন সময় বিভিন্ন কার্যক্রম নিচ্ছি। তারই অংশ হিসেবে শীতার্তদের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ করা হয়েছে। আগামীতেও আমাদের এ ধরনের কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে।’

দেশের বিভিন্ন স্থানে ১ হাজার ৩০০ শীতার্ত পরিবারের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ করেছে পোশাক বিক্রয়কারী প্রতিষ্ঠান ‘গ্রামীণ ইউনিক্লো’। এসবের মধ্যে রয়েছে ফ্লানেল শার্ট, কম্বল, সোয়েটার, কার্ডিগান, প্যান্ট ও শিশুদের পোশাক।

দেশের সর্ব উত্তরের শীতগ্রস্ত জেলা পঞ্চগড়ে সবচেয়ে বেশি ৬০০ মানুষের মধ্যে কম্বল বিতরণ করা হয়। এ ছাড়া রাজধানী ঢাকায় অসহায় ও গৃহহীন মানুষসহ অন্যান্য এলাকার ৭০০ মানুষকেও শীতবস্ত্র দিয়েছে গ্রামীণ ইউনিক্লো।

প্রতিষ্ঠানটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক নাজমুল হক বলেন, ‘গ্রামীণ ইউনিক্লো সামাজিক ব্যবসায় হিসেবে পরিচালিত হচ্ছে। সমাজের প্রতি দায়বদ্ধতা থেকে আমরা বিভিন্ন সময় বিভিন্ন কার্যক্রম নিচ্ছি। তারই অংশ হিসেবে শীতার্তদের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ করেছি। আগামীতেও আমাদের এ ধরনের কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে।’

শীতবস্ত্র বিতরণ কার্যক্রমে যুক্ত ছিলেন গ্রামীণ ইউনিক্লোর ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা ও স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা।

বর্তমানে এশিয়ার শীর্ষ পোশাক বিক্রয়কারী জাপানি প্রতিষ্ঠান ইউনিক্লোর সহযোগী প্রতিষ্ঠান ‘গ্রামীণ ইউনিক্লো’। গ্রামীণ ইউনিক্লো বাংলাদেশে ২০১১ সালে প্রতিষ্ঠা হয় এবং ২০১৩ সাল থেকে বিভিন্ন স্থানে নতুন আউটলেট স্থাপনের মাধ্যমে প্রতিষ্ঠানটি ব্যবসায় কার্যক্রম পরিচালনা করছে। প্রতিষ্ঠার শুরু থেকে প্রতিষ্ঠানটি সমাজের উন্নয়নের জন্য বিভিন্ন কার্যক্রমের সঙ্গেও যুক্ত রয়েছে।

আরও পড়ুন:
ছবিতে নিউজবাংলার স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন
বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন নিউজবাংলার
কমনওয়েলথের সঙ্গী নিউজবাংলা
‘সাইবার হয়রানি’ নিয়ে আইনি পরামর্শ দেবেন মিতি-মেহেরবা
‘সাইবার হয়রানি’ নিয়ে আইনি পরামর্শ শনিবার নিউজবাংলায়

শেয়ার করুন

গরুর গাড়ি দৌড়িয়ে টেলিভিশন পেলেন নজরুল

গরুর গাড়ি দৌড়িয়ে টেলিভিশন পেলেন নজরুল

ঝিনাইদহ সদরে গরুর গাড়িদৌড়ে দুই প্রতিযোগী। ছবি: নিউজবাংলা

গান্না ইউনিয়নের বেতাই গ্রামে গরুর গাড়িদৌড়ের এই প্রতিযোগিতা হয় প্রতি বছরই। কয়েক হাজার দর্শকের উপস্থিতিতে গ্রাম হয় ওঠে উৎসবমূখর।

কনকনে ঠান্ডা সত্ত্বেও নিজ নিজ গরু ও গরুর গাড়ি নিয়ে সকাল থেকে ঝিনাইদহ সদরে বেতাই গ্রামে জড়ো হতে থাকেন কয়েক হাজার প্রতিযোগী। গরুর গাড়ির দৌড়ের আয়োজন হয় সেখানে।

রোববার দিনভর প্রতিযোগিতা শেষে জয়ী হন যশোরের বাঘারপাড়া থেকে যাওয়া নজরুল মুন্সি। পুরস্কার হিসেবে পেয়ে যান একটি টেলিভিশন।

দ্বিতীয় ও তৃতীয় স্থানে ঝিনাইদহের মহেশপুরে দোলন হোসেন ও যশোরের রহমত আলী পান বাইসাইকেল ও ফ্যান।

গান্না ইউনিয়নের বেতাই গ্রামে গরুর গাড়িদৌড়ের এই প্রতিযোগিতা হয় প্রতি বছরই। এবারেরটি আয়োজন করেছেন ইউনিয়নের নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান আতিকুল হাসান মাসুম। কয়েক হাজার দর্শকের উপস্থিতিতে গ্রাম হয় ওঠে উৎসবমূখর।

কালীগঞ্জ উপজেলার ত্রিলোচনপুর গ্রাম থেকে প্রতিযোগিতা দেখতে যান কলেজছাত্র রাব্বি হোসেন।

তিনি বলেন, ‘গ্রাম বাংলার ঐহিত্য এই গরুর গাড়ির দৌড়। সত্যিই খুব মনোমুগ্ধকর। মানুষের মাঝে এক ধরনের আনন্দ কাজ করছে। প্রতি বছর এই আয়োজন অব্যাহত রাখা উচিত।’

ঝিনাইদহ শহর থেকে প্রতিযোগিতা দেখতে যাওয়া অন্তর মাহমুদ বলেন, ‘আমরা বন্ধুরা মিলে দেখতে এসেছি। খুবই ভালো লাগছে খেলা দেখতে। গ্রামের মানুষের মধ্যে প্রাণের সঞ্চার হয়েছে। খেলাটা সত্যিই উপভোগ্য। এ জন্য আয়োজকদের আমরা ধন্যবাদ জানাই।’

গরুর গাড়ি দৌড়িয়ে টেলিভিশন পেলেন নজরুল

ঝিনাইদহ সদরের জিয়ালা গ্রাম থেকে প্রতিযোগিতায় অংশ নিতে আসেন কবির হোসেন। তিনি বলেন, ‘আমরা সারা বছর চাষাবাদ করি। বছরের এই সময়টা অপেক্ষায় থাকি এই খেলায় অংশ নেয়ার জন্য। মানুষ আমাদের খেলা দেখে আনন্দ পায়। তা দেখে আমরাও আনন্দ পাই। আনন্দের জন্যই আমরা প্রতিযোগিতায় অংশ নিই।’

চেয়ারম্যান আতিকুলও জানান, গ্রামবাসীর আনন্দের জন্যই এই প্রতিযোগিতার আয়োজন। আগামীতে আরও বড় পরিসরে আয়োজন হবে বলে তিনি আশা করেছেন।

আরও পড়ুন:
ছবিতে নিউজবাংলার স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন
বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন নিউজবাংলার
কমনওয়েলথের সঙ্গী নিউজবাংলা
‘সাইবার হয়রানি’ নিয়ে আইনি পরামর্শ দেবেন মিতি-মেহেরবা
‘সাইবার হয়রানি’ নিয়ে আইনি পরামর্শ শনিবার নিউজবাংলায়

শেয়ার করুন

করোনায় শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধি নির্বাচন স্থগিত

করোনায় শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধি নির্বাচন স্থগিত

করোনার তৃতীয় ঢেউ ছড়িয়ে পড়ার পরিপ্রেক্ষিতে গত ২১ জানুয়ারি এক আদেশে সব ধরনের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে সশরীরে ক্লাস আগামী ৬ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত বন্ধ রাখার নির্দেশ এসেছে।

করোনা ভাইসারের বিস্তারের কারণে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকা অবস্থান ব্যবস্থাপনা কমিটি ও পরিচালনা পর্ষদ নির্বাচন স্থগিত রাখতে নির্দেশনা জারি করা হয়েছে।

রোববার ঢাকা শিক্ষা বোর্ড থেকে এ নির্দেশনা জারি করা হয়েছে।

নির্দেশনায় বলা হয়, ‘মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের নির্দেশনা মোতাবেক সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখা হয়েছে। করোনা ভাইরাসজনিত রোগ কোভিড-১৯ এর বিস্তার রোধকল্পে যে সমন্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ম্যানেজিং কমিটির নির্বাচন সংক্রান্ত কার্যক্রম চলমান রয়েছে, সে সমস্ত প্রতিষ্ঠানের নির্বাচন সংক্রান্ত যাবতীয় কার্যক্রম আগামী ৬ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত স্থগিত করা হলো।’

করোনার তৃতীয় ঢেউ ছড়িয়ে পড়ার পরিপ্রেক্ষিতে গত ২১ জানুয়ারি এক আদেশে সব ধরনের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে সশরীরে ক্লাস আগামী ৬ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত বন্ধ রাখার নির্দেশ এসেছে। ২০২০ সালের মার্চে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান শুরুতে একটি সীমিত সময়ের জন্য বন্ধ করা হলেও পরে বারবার এর মেয়াদ বাড়ানো হয়। সে সময় সব মিলিয়ে দেড় বছর বন্ধ থাকে শিক্ষাঙ্গন। ক্লাস-পরীক্ষা নেয়া হয় অনলাইনে।

ঢাকা শিক্ষাবোর্ডের নির্দেশনায় বলা হয়, এবারও যদি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছুটির মেয়াদ বাড়ানো হয়, সেক্ষেত্রে নির্বাচনে এই নিষেধাজ্ঞা ছুটিকালীন সময় পর্যন্ত বহাল থাকবে।

মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তরের জারি করা গত ২২ জানুয়ারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে স্বাস্থ্যবিধি সংক্রান্ত ১১ নির্দেশনা বাস্তবায়নে যথাযথভাবে প্রতিপালন করার জন্যও অনুরোধ করা হয় এই আদেশে।

আরও পড়ুন:
ছবিতে নিউজবাংলার স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন
বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন নিউজবাংলার
কমনওয়েলথের সঙ্গী নিউজবাংলা
‘সাইবার হয়রানি’ নিয়ে আইনি পরামর্শ দেবেন মিতি-মেহেরবা
‘সাইবার হয়রানি’ নিয়ে আইনি পরামর্শ শনিবার নিউজবাংলায়

শেয়ার করুন

অমর একুশে: শহীদ মিনারে যেতে লাগবে টিকা সনদ

অমর একুশে: শহীদ মিনারে যেতে লাগবে টিকা সনদ

করোনার তৃতীয় ঢেউ ছড়িয়ে পড়ার পরিপ্রেক্ষিতে সরকার গত ১৩ জানুয়ারি নানা বিধিনিষেধ জারি করে সব ধরনের জমায়েত নিষিদ্ধ করে। ২১ জানুয়ারি আরেক আদেশে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে সশরীরে ক্লাস এবং সামাজিক ও রাষ্ট্রীয় যে কোনো অনুষ্ঠানে এক শ জনের বেশি মানুষের উপস্থিতিতে নিষেধাজ্ঞা দেয়া হয়। জানানো হয়, যারা উপস্থিত হবেন, তাদের হয় টিকার সনদ, নয় করোনা নেগেটিভ সনদ লাগবে।

২১ ফেব্রুয়ারি শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে যেতে হলে করোনা টিকার সনদ সঙ্গে রাখতে হবে। সেই সঙ্গে সবাইকে পরতে হবে মাস্ক।

সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে ও যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করে প্রতিটি সংগঠন বা প্রতিষ্ঠানের পক্ষ হতে সর্বোচ্চ পাঁচজন প্রতিনিধি ও ব্যক্তি পর্যায়ে একসঙ্গে সর্বোচ্চ দুইজন শহীদ মিনারে ফুল দিতে পারবেন।

অমর একুশে উদযাপন বিষয়ে রোববার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে এক ভার্চুয়াল সভায় এসব সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। উপাচার্য অধ্যাপক মো. আখতারুজ্জামান এর সভাপতিত্ব করেন।

সভায় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ উপাচার্যরা ছাড়াও কোষাধ্যক্ষ, সিনেট-সিন্ডিকেট সদস্য, রেজিস্ট্রার, শিক্ষক সমিতির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক, বিভিন্ন অনুষদের ডিন, বিভিন্ন হলের প্রভোস্ট, বিভিন্ন বিভাগের চেয়ারম্যান, বিভিন্ন ইনস্টিটিউটের পরিচালক, প্রক্টরও যুক্ত ছিলেন।

উপাচার্য বলেন, ‘কোভিড-১৯ উদ্ভূত পরিস্থিতি বিবেচনায় যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করে ও সামজিক দূরত্ব বজায় রেখে সীমিত পরিসরে যথাযোগ্য মর্যাদা ও ভাবগাম্ভীর্যের সাথে মহান শহীদ দিবস আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালন করা হবে।’

করোনার তৃতীয় ঢেউ ছড়িয়ে পড়ার পরিপ্রেক্ষিতে সরকার গত ১৩ জানুয়ারি নানা বিধিনিষেধ জারি করে সব ধরনের জমায়েত নিষিদ্ধ করে। ২১ জানুয়ারি আরেক আদেশে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে সশরীরে ক্লাস এবং সামাজিক ও রাষ্ট্রীয় যে কোনো অনুষ্ঠানে এক শ জনের বেশি মানুষের উপস্থিতিতে নিষেধাজ্ঞা দেয়া হয়। জানানো হয়, যারা উপস্থিত হবেন, তাদের হয় টিকার সনদ, নয় করোনা নেগেটিভ সনদ লাগবে।

এই পরিস্থিতিতে অমর একুশের অনুষ্ঠান কীভাবে হবে, তা জানিয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য বলেন, ‘পরিবর্তিত পরিস্থিতিতে গত বছরের ন্যায় এ বছরও জনসমাগম এড়িয়ে চলার বিষয়ে ব্যাপক সচেতনতা সৃষ্টি করতে হবে।’

সভায় শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উদযাপনের কর্মসূচি সুষ্ঠুভাবে বাস্তবায়নে অমর একুশে উদযাপন কেন্দ্রীয় সমন্বয় কমিটি এবং বিভিন্ন উপ-কমিটিও গঠন করা হয়।

আরও পড়ুন:
ছবিতে নিউজবাংলার স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন
বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন নিউজবাংলার
কমনওয়েলথের সঙ্গী নিউজবাংলা
‘সাইবার হয়রানি’ নিয়ে আইনি পরামর্শ দেবেন মিতি-মেহেরবা
‘সাইবার হয়রানি’ নিয়ে আইনি পরামর্শ শনিবার নিউজবাংলায়

শেয়ার করুন

উপাচার্যের বিরুদ্ধে পদক্ষেপ চায় শাবি শিক্ষক সমিতি

উপাচার্যের বিরুদ্ধে পদক্ষেপ চায় শাবি শিক্ষক সমিতি

শাবি উপাচার্য অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিন আহমেদ। ছবি: সংগৃহিত

শিক্ষক সমিতির সভাপতি তুলসী কুমার দাস বলেন, ‘শিক্ষার্থীদের ওপর যে হামলার ঘটনা ঘটেছে তার নিন্দা জানিয়েছি। সেই সঙ্গে সুষ্ঠু তদন্ত করে দায়ী ব্যক্তিদের শাস্তির আওতায় আনার আহ্বান জানিয়েছি আমরা।’

উপাচার্যের বিরুদ্ধে দ্রুত পদক্ষেপ নেয়ার আহ্বান জানিয়েছে শাবি শিক্ষক সমিতি।

একই সঙ্গে শিক্ষার্থীরা যাতে কোনো ধরনের সহিংসতার শিকার না হয় সে বিষয়টিও নিশ্চিত করতে বলা হয়েছে।

নিউজবাংলাকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন সমিতির সভাপতি তুলসী কুমার দাস।

বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার ভবনে রোববার বেলা ৩টার দিকে বৈঠকে বসেন শিক্ষক সমিতির নেতারা।

টানা পাঁচ ঘণ্টা বৈঠক শেষে রাত ৮টার পরে তুলসী কুমার দাস বলেন, ‘শিক্ষার্থীদের ওপর যে হামলার ঘটনা ঘটেছে তার নিন্দা জানিয়েছি। সেই সঙ্গে সুষ্ঠু তদন্ত করে দায়ী ব্যক্তিদের শাস্তির আওতায় আনার আহ্বান জানিয়েছি আমরা।’

আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা যাতে কোনো হয়রানির শিকার না হয় সেদিকে প্রশাসনকে নজর রাখার আহ্বান জানিয়ে তুলসী কুমার দাস বলেন, ‘শিক্ষার্থীদের অনশন ভাঙানোর ব্যাপারে দ্রুত কার্যকর উদ্যোগ নেয়া প্রয়োজন। উপচার্যের পদত্যাগের বিষয়টি যেহেতু সরকারের এখতিয়ার, আমরা এ ক্ষেত্রে দ্রুত পদক্ষেপ নেয়ার অনুরোধ করছি।’

শিক্ষক সমিতির পক্ষ থেকে সংবাদমাধ্যমে একটি বিবৃতিও পাঠানো হয়েছে। শিক্ষকদের এই অবস্থানে উল্লাস প্রকাশ করেছেন আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা।

শিক্ষার্থী মোহাইমিনুল বাশার রাজ বলেন, ‘এটা আমাদের আন্দোলনের প্রাথমিক বিজয়। আমরা চূড়ান্ত বিজয়ের কাছাকাছি পৌঁছে গেছি।’

আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের ওপর পুলিশের চড়াও হওয়ার ঘটনাকে দুঃখজনক বলে মন্তব্য করেছেন শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনিও।

রাজধানীর হেয়ার রোডে মন্ত্রীর বাসায় শাবি শিক্ষকদের প্রতিনিধি দলের সঙ্গে বৈঠক শেষে এ মন্তব্য করেন তিনি।

মন্ত্রী বলেন, ‘শাবিতে পুলিশি আচরণ (অ্যাকশন) দুঃখজনক। কিন্তু শিক্ষকদেরও লাঞ্ছিত করা হয়েছে। দুটোই অনভিপ্রেত।

মন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠকে অংশ নেয়া শিক্ষকদের প্রতিনিধি দলে ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক সমিতির সভাপতি তুলসী কুমার দাস, সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ মুহিবুল আলম, ফিজিক্যাল সায়েন্সেস অনুষদের ডিন মো. রাশেদ তালুকদার, অ্যাপ্লায়েড সায়েন্সেস অনুষদের ডিন আরিফুল ইসলাম ও ব্যবসায় প্রশাসন অনুষদের ডিন খায়রুল ইসলাম।

পরে শিক্ষামন্ত্রী আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের সঙ্গে ভার্চুয়ালি বৈঠক করেন। তবে কোনো সিদ্ধান্ত ছাড়াই ওই বৈঠক শেষ হয়।

বৈঠক শেষে শিক্ষামন্ত্রীর প্রতিনিধি দলের সদস্য আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক শফিউল আলম নাদেল বলেন, ‘শিক্ষার্থীদের অনশন নিয়ে চিন্তিত শিক্ষামন্ত্রী। তাই তিনি অনুরোধ করেছেন এই কর্মসূচি থেকে শিক্ষার্থীরা যেন সরে আসেন। একই সঙ্গে কোনো শিক্ষার্থী অ্যাকাডেমিক বা আইনি হয়রানির শিকার যেন না হয় সেই বিষয়টি দেখা হবে।’

এর আগে হামলার ঘটনায় প্রশাসন দায় এড়াতে পারে না বলে জানান বিশ্ববিদ্যালয়টির ‘মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উদ্বুদ্ধ শিক্ষক পরিষদের’ নেতারা।

আরও পড়ুন:
ছবিতে নিউজবাংলার স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন
বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন নিউজবাংলার
কমনওয়েলথের সঙ্গী নিউজবাংলা
‘সাইবার হয়রানি’ নিয়ে আইনি পরামর্শ দেবেন মিতি-মেহেরবা
‘সাইবার হয়রানি’ নিয়ে আইনি পরামর্শ শনিবার নিউজবাংলায়

শেয়ার করুন

নিয়ম মেনে এমপিও’র আবেদন চায় মাউশি

নিয়ম মেনে এমপিও’র আবেদন চায় মাউশি

মাউশি মহাপরিচালক (রুটিন দায়িত্ব) অধ্যাপক মো. শাহেদুল খবির চৌধুরীর সই করা অফিস আদেশে বলা হয়, বেসরকারি এমপিওভুক্ত কলেজের কোনো কোনো অধ্যক্ষ, উপাধ্যক্ষ, শিক্ষক ও কর্মচারীদের এমপিও বা এমপিও বকেয়ার জন্য যথাযথ কর্তৃপক্ষের মাধ্যমে আবেদন করেননি। অনেকে সরাসরি আবেদন করছেন। এটা জনবল কাঠামো ও এমপিও নীতিমালা এবং বিধি-বিধান পরিপন্থী। এমনকি এসব কারণে এমপিও প্রক্রিয়ায় বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির আশঙ্কা থাকে।

এমপিও বা বকেয়া এমপিও পেতে অনেকেই যথাযথ কর্তৃপক্ষের মাধ্যমে আবেদন করেন না। এতে নানামুখী সমস্যা হচ্ছে। এবার নিয়ম অনুযায়ী আবেদন করতে শিক্ষক-কর্মচারীদের নির্দেশনা দিয়েছে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তর (মাউশি)।

রোববার মাউশি মহাপরিচালক (রুটিন দায়িত্ব) অধ্যাপক মো. শাহেদুল খবির চৌধুরীর সই করা অফিস আদেশে এই নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।

এতে বলা হয়, বেসরকারি এমপিওভুক্ত কলেজের কোনো কোনো অধ্যক্ষ, উপাধ্যক্ষ, শিক্ষক ও কর্মচারীদের এমপিও বা এমপিও বকেয়ার জন্য যথাযথ কর্তৃপক্ষের মাধ্যমে আবেদন করেননি। অনেকে সরাসরি আবেদন করছেন। এটা জনবল কাঠামো ও এমপিও নীতিমালা এবং বিধি-বিধান পরিপন্থী। এমনকি এসব কারণে এমপিও প্রক্রিয়ায় বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির আশঙ্কা থাকে।

মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের এমপিও কমিটির সভার সিদ্ধান্তে বলা আছে, ‘কোনো শিক্ষক-কর্মচারীর এমপিও বকেয়ার বিষয়ে আবেদনের ক্ষেত্রে প্রতিষ্ঠান প্রধানের অগ্রায়নপত্রসহ প্রযোজ্য ক্ষেত্রে জেলা শিক্ষা অফিসার এবং উপপরিচালক/পরিচালক, মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা আঞ্চলিক কার্যালয় থেকে বকেয়ার কারণসহ যাচাই করে মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরে পাঠাতে হবে।

এমপিও হলো মান্থলি পেমেন্ট অর্ডার বা মাসিক বেতন আদেশ, যার মাধ্যমে বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক-কর্মচারীদের বেতন সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানের বদলে পরিশোধ করে সরকার।

আরও পড়ুন:
ছবিতে নিউজবাংলার স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন
বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন নিউজবাংলার
কমনওয়েলথের সঙ্গী নিউজবাংলা
‘সাইবার হয়রানি’ নিয়ে আইনি পরামর্শ দেবেন মিতি-মেহেরবা
‘সাইবার হয়রানি’ নিয়ে আইনি পরামর্শ শনিবার নিউজবাংলায়

শেয়ার করুন