২০ কালভার্টে ২৫ লাখ ঘুষ, তবু বিল দিতে গড়িমসি

২০ কালভার্টে ২৫ লাখ ঘুষ, তবু বিল দিতে গড়িমসি

বরগুনার প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তার বিরুদ্ধে ঘুষ নিয়েও বিল না দেয়ার অভিযোগ তুলেছেন ঠিকাদাররা। ঘেরাও করে প্রতিবাদ জানানোয় তাড়াহুড়ো করে বিলের টাকা না দিয়ে জামানতের টাকা ফেরত দেয়া হয়েছে।

বরগুনা সদর উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা (পিআইও) ওলিউল ইসলামের বিরুদ্ধে ২৫ লাখ টাকা ঘুষ নেয়ার অভিযোগ উঠেছে। সদর উপজেলার ২০টি কালভার্ট নির্মাণকাজে দুই ধাপে তিনি ২৫ লাখ টাকা ঘুষ নিয়েছেন বলে সংশ্লিষ্ট ঠিকাদারদের অভিযোগ।

ঘুষ নিয়েও বিল দেয়ায় গড়িমসি করায় গত সোমবার ঠিকাদাররা প্রায় তিন ঘণ্টা পিআইও ওলিউল ইসলামকে তার কার্যালয়ে অবরুদ্ধ করে রাখেন। পরে বরগুনা সদর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যানের হস্তক্ষেপে তিনি অবরুদ্ধ অবস্থা থেকে মুক্ত হন।

ঠিকাদাররা জানান, ২০১৯-২০ অর্থবছরে ত্রাণ ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা মন্ত্রণালয়ের আওতায় বরগুনা সদর উপজেলার বিভিন্ন স্থানে ৩ কোটি ৪০ লাখ টাকা ব্যয়ে ২০টি কালভার্ট নির্মাণ প্রকল্পের কাজ হয়। ২০১৯ সালের এপ্রিল মাসে লটারির মাধ্যমে ঠিকাদারদের কার্যাদেশ দেয়া হয়। জুন-জুলাই মাসে কালভার্ট নির্মাণের কাজ শেষ হয়।

সে সময় আমতলী উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মফিজুর রহমান বরগুনা সদরের অতিরিক্ত দায়িত্বে ছিলেন। অসুস্থতার কারণে ২০২০ সালের অক্টোবর মাসে মফিজুর দায়িত্ব ছেড়ে দিলে বেতাগী উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা ওলিউল ইসলামকে বরগুনা সদরের অতিরিক্ত দায়িত্ব দেয়া হয়।

খালেক এন্টারপ্রাইজ নামের ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের ঠিকাদার রিয়াজুল ইসলাম বলেন, ‘মফিজুর রহমান দায়িত্বে থাকাকালীন ২০টি কালভার্টের কাজের মোট ৩ কোটি ৪০ লাখ টাকার বিলের বিপরীতে তিন ধাপে আমাদের ১ কোটি ২০ লাখ টাকা বিল পরিশোধ করা হয়। ওলিউল ইসলাম যোগদানের পর ঠিকাদাররা বাকি বিলের জন্য কয়েক দফা তার সঙ্গে যোগাযোগ করেন। কিন্তু পিআইও ওলিউল বিল পাইয়ে দেয়ার জন্য আমাদের কাছে ২৫ লাখ টাকা ঘুষ দাবি করেন।’

রিয়াজুল ইসলাম বলেন, ‘কাজ শেষ হওয়ার দেড় বছরের বেশি সময় আমরা বিলের জন্য অপেক্ষা করি। নিরুপায় হয়ে আমরা ২০টি কাজের ২০ ঠিকাদার বৈঠক করে ২৫ লাখ টাকা ঘুষ দিতে সম্মত হই। টাকা নিয়ে ঢাকায় যোগাযোগ করতে বলেন পিআইও ওলিউল ইসলাম।

‘জানুয়ারি মাসে আমরা চারজন ঠিকাদার ত্রাণ ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদপ্তরে ঢাকার প্রধান কার্যালয়ের সামনে গিয়ে ওলিউল ইসলামের সঙ্গে যোগাযোগ করি। তিনি এসে আমাদের সঙ্গে দেখা করেন ও অধিদপ্তরের ডিপিডি আলতাফ হোসেনের পিওন তাহের মিয়ার কাছে টাকা দিতে বলেন। আমরা ওলিউল ইসলামের উপস্থিতিতে তাহেরের কাছে টাকা দিয়ে দিই। তাহের ওই টাকা ওলিউল ইসলামের বাসায় পৌছে দেন।’

এ বিষয়ে মুঠোফোনে তাহের মিয়ার সঙ্গে যোগাযোগ করা হয়। তিনি বর্তমানে বগুড়া সদর উপজেলার প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা হিসেবে দায়িত্বে আছেন। বরগুনা সদরের পিআইও ওলিউল ইসলামকে দেয়া ঘুষের টাকা গ্রহণ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘পিআইও ওলিউল ইসলাম আমার পরিচিত, তবে তার বাবদ আমি বরগুনার ঠিকাদারদের কাছ থেকে ঘুষের কোনো টাকাপয়সা গ্রহণ করিনি।’

ওই কাজের অপর ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান সাঁই এন্টারপ্রাইজের লিটন শরীফ বলেন, ‘আমরা দীর্ঘ দুই বছর বিলের জন্য অপেক্ষা করছি। ধারদেনা করে ওলিউল ইসলামকে ঘুষ দিয়েও তিন থেকে চার মাস অপেক্ষা করছি। একই কাজে বরগুনার অন্য সব উপজেলার বিল পরিশোধ হয়েছে। এমনকি জামানতের টাকাও তুলে নিয়েছেন অনেকে। বরগুনা সদরের দায়িত্বে থাকা পিআইও ওলিউল ইসলাম ঘুষ নেয়ার পরও আমাদের বিল পরিশোধে গড়মসি করছেন।

‘তিনি দায়িত্বে থাকলেও বরগুনায় অফিস করেন না। আমরা ফোনে কল করায় তিনি আমাদের অনেকের নম্বর ব্লাক লিস্টেড করে রেখেছেন। সোমবার তিনি বরগুনা কার্যালয়ে এসেছেন এমন খবর পেয়ে আমরা গিয়ে তার কাছে বিলের টাকা চাই। কিন্তু তিনি ফের গড়মসি শুরু করেন। খবর পেয়ে অন্য ঠিকাদাররাও কার্যালয়ে এসে বিলের দাবিতে তাকে অবরুদ্ধ করে রাখে।’

জায়েদা এন্টারপ্রাইজ নামে আরেক ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের বাবু জোমাদ্দার বলেন, ‘ঠিকাদারি কাজে এসে অনেক দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তা দেখেছি। কিন্তু ওলিউল এমনই দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তা, যে টাকা ছাড়া এক পাও নড়েন না। কাজের ধাপে ধাপে তাকে ঘুষ দিতে হয়। এরপরও চূড়ান্ত বিল পরিশোধে ঘুষ দাবি করেন। দেয়ালে পিঠ ঠেকে যাওয়ায় আমরা তাকে ঘুষ দিয়েছি। কিন্ত তিনি বিল নিয়ে ঘোরাচ্ছেন।’

ঠিকাদারদের এসব অভিযোগের বিষয়ে ওলিউল ইসলামের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি ঘুষ নেয়ার বিষয়টি অস্বীকার করেন। ওলিউল বলেন, ‘প্রকল্পের কাজের সময় মফিজুর রহমান দায়িত্বে ছিলেন। তিনি বদলি হওয়ার কারণে কাগজপত্রের বিষয়ে জটিলতা সৃষ্টি হয়েছে। আমি নতুন করে কাজের কাগজপত্র গুছিয়ে হেড অফিসে পাঠিয়েছি। হেড অফিস থেকে টাকা দিলেই আমি তাদের টাকা শোধ করে দেব।’

তার বিরুদ্ধে ঘুষ নেয়ার যে অভিযোগ উঠেছে, সে প্রসঙ্গে জানতে চাওয়া হলে তিনি বলেন, ‘এক পয়সাও ঘুষ নিইনি, এসব অভিযোগ মিথ্যা।’

বিলের আগেই জামানত ফেরত

ঠিকাদারদের তোপের মুখে বুধবার পিআইও ওলিউল ইসলাম কাজের চূড়ান্ত বিল প্রদানের আগেই জামানাতের টাকা ফেরত দিয়েছেন বলে ঠিকাদাররা জানিয়েছেন।

খালেক এন্টারপ্রাইজ নামের ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের ঠিকাদার রিয়াজ হোসেন বলেন, ‘ঘুষের অভিযোগ ধামাচাপা দেয়ার জন্য পিআইও ওলিউল ইসলাম আমাদের ডেকে জামানতের টাকা ফেরত দিয়েছেন।’

রিয়াজ হোসেন বলেন, ‘আমার ১ লাখ ২০ হাজার টাকা জামানত ফেরত দিয়েছেন।’ ঠিক একইভাবে ওই প্রকল্পের ২০টি কালভার্টের কাজের ঠিকাদারদের সবার টাকাই ফেরত দেয়া হয়েছে বলে রিয়াজ জানান।

বিলের আগে জামানত ফেরত দেয়ার প্রসঙ্গে যোগাযোগ করা হলে পিআইও ওলিউল ইসলাম বলেন, ‘বিল নিয়ে জটিলতা সৃষ্টি হয়েছে। কাজের বিপরীতে চূড়ান্ত বিল প্রদানের প্রতিবেদন পেয়েছি। সে কারণে ঠিাকাদারদের জামানত ফেরত দেয়া হয়েছে।’

এ বিষয়ে বরগুনার জেলা প্রশাসক হাবিবুর রহমান বলেন, প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তার ঘুষ নেয়ার ব্যাপারে কেউ অভিযোগ করলে তদন্ত করে যথাযথ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

আরও পড়ুন:
বাফুফের আর্থিক হিসেবে গড়মিল খুঁজে পেয়েছে ফিফা
দুর্নীতির দায়ে সওজের প্রকৌশলীর কারাদণ্ড
উত্তর ঢাকায় ৮০ লাখ টাকার রোড সুইপার ৬ কোটি টাকায়!
বেশি দামে জমি কিনে কম দামে বেচেন যিনি
সাংবাদিকদের এড়িয়ে গেল ইউজিসির তদন্ত দল

শেয়ার করুন

মন্তব্য

আগের চেয়ে দ্রুত বিবর্তন ঘটছে মানুষের

আগের চেয়ে দ্রুত বিবর্তন ঘটছে মানুষের

ফাইল ছবি।

এক গবেষণায় দেখা গেছে, আধুনিককালের পৃথিবীতে মানুষের বিবর্তন শুধু জিনের ওপর নির্ভরশীল নয়। বরং জেনেটিক রূপান্তরের চেয়ে সংস্কৃতিই মানব বিবর্তনকে ত্বরান্বিত করছে। নতুন এই ধারণা অনুযায়ী, টিকে থাকার সুবিধার জন্য জেনেটিক রূপান্তর এখন আর জরুরি নয়।

হোম স্যাপিয়েন্সের উদ্ভবের পর থেকেই প্রাকৃতিক নির্বাচনের কারণে আমাদের পূর্বপুরুষেরা পরিবেশের সঙ্গে খাপ খাইয়েছেন। এর পেছনে মূল ভূমিকা রেখেছে জিনগত বিবর্তন। জেনেটিক এই রূপান্তরের কারণেই বর্তমান মানুষের আবির্ভাব।

তবে এক গবেষণায় দেখা গেছে, আধুনিককালের পৃথিবীতে মানুষের বিবর্তন শুধু জিনের ওপর নির্ভরশীল নয়। বরং জেনেটিক রূপান্তরের চেয়ে সংস্কৃতিই মানব বিবর্তনকে ত্বরান্বিত করছে।

নতুন এই ধারণা অনুযায়ী, টিকে থাকার সুবিধার জন্য জেনেটিক রূপান্তর এখন আর জরুরি নয়। বরং সংস্কৃতির মাধ্যমে পর্যায়ক্রমে গড়ে ওঠা অভ্যাসই ‘রূপান্তর’ এর মূল চালিকা শক্তি, যা মানুষকে টিকে থাকার সুবিধা দিচ্ছে।

এই ‘সাংস্কৃতিক বিবর্তন’ আগামীতেও মানবজাতির ভাগ্যকে আরও শক্তভাবে নিয়ন্ত্রণ করবে বলে গবেষকদের ধারণা।

যুক্তরাষ্ট্রের ইউনিভার্সিটি অফ মাইনের বায়োলজি অ্যান্ড ইকোলজি বিভাগের গবেষক জ্যাক উড বিজ্ঞানভিত্তিক ওয়েবসাইট লাইভ সায়েন্সকে বলেন, ‘যখন কোনো প্রজাতিকে ভাইরাস আক্রমণ করে, সাধারণত সেটি জেনেটিক রূপান্তরের মাধ্যমে ওই ভাইরাস থেকে নিজেকে সুরক্ষিত রাখে।’

এই ধরনের বিবর্তন ঘটে ধীরে। কারণ, যারা ভাইরাস আক্রমণের ক্ষেত্রে স্পর্শকাতর তারা মৃত্যুবরণ করে এবং যারা টিকে থাকে তারা আগ্রাসী ভাইরাস সংক্রান্ত জেনেটিক কোড পরের প্রজন্মে সঞ্চার করে।

তবে বর্তমানে এ ধরনের হুমকিতে জেনেটিকভাবে ভাবে খাপ খাইয়ে নেয়ার আর দরকার নেই। বরং এখন মানুষ এখন কোনো নির্দিষ্ট একজনের ওপর নির্ভরশীল না হয়ে বহু মানুষের সংগ্রহ করা সাংস্কৃতিক জ্ঞানের ‘রূপান্তরের’ ফলে আবিষ্কৃত টিকা ও অন্যান্য চিকিৎসা পদ্ধতি ব্যবহার করে খাপ খাইয়ে নিতে সক্ষম।

ইউনিভার্সিটি অফ মাইনের সোশ্যাল ইকোসিস্টেম মডেলিংয়ের সহযোগী অধ্যাপক টিম ওয়ারিং বলেন, “টিকা উদ্ভাবনের মাধ্যমে মানব সংস্কৃতি তার সম্মিলিত ‘ইমিউন সিস্টেম’ উন্নত করছে”।

কোনো কোনো ক্ষেত্রে সাংস্কৃতিক বিবর্তনের ফলেও জিনগত বিবর্তন ঘটে। ওয়ারিং লাইভ সায়েন্সকে বলেন, ‘গরুর দুধ পান করা শুরুতে একটা সাংস্কৃতিক বৈশিষ্ট্য থাকলেও পরে তা এক দল মানুষের জেনেটিক বিবর্তন ঘটাতে সক্ষম হয়।’

এ ক্ষেত্রে দেখা যাচ্ছে জেনেটিক পরিবর্তনের আগে সাংস্কৃতিক পরিবর্তন হচ্ছে।

ওয়ারিং বলেন, সাংস্কৃতিক বিবর্তনের ধারণাটি শুরু হয়েছে বিবর্তনবাদের জনকের কাছ থেকেই। চার্লস ডারউইন বুঝতে পেরেছিলেন, মানুষের অভ্যাস বিবর্তিত হতে পারে এবং সেটি সন্তানের মধ্যে তার শারীরিক বৈশিষ্ট্যের মতোই হস্তান্তর করা সম্ভব। কিন্তু তার সময়ে বিজ্ঞানীরা বিশ্বাস করতেন, আচরণের পরিবর্তন উত্তরাধিকার সূত্রে পায় সন্তানেরা।

উদাহরণ হিসেবে বলা যায়, কোনও মায়ের যদি এমন প্রবণতা থাকে, যা তার মেয়েকে খাবার অন্বেষণ শেখাতে পারে; তাহলে তিনি সেটি তার মেয়েকে দিয়ে যাবেন। এতে তার মেয়ের টিকে থাকার সম্ভাবনা বাড়বে এবং এর ফলে, এই প্রবণতা আরও মানুষের মধ্যে আরও বেশি দেখা যাবে।

‘প্রসিডিংস অফ দ্য রয়্যাল সোসাইটি বি’ এর জার্নালে ২ জুন প্রকাশিত গবেষণায় ওয়ারিং ও উড দাবি করেন, মানব ইতিহাসের কোনো এক সময়ে সংস্কৃতি আমাদের ডিএনএর বিবর্তনকে নিয়ন্ত্রণ করতে শুরু করে। দুই গবেষক বলছেন, সাংস্কৃতিক পরিবর্তন আমাদের এমনভাবে বিবর্তিত হতে সাহায্য করছে, যা শুধু জৈবিক পরিবর্তনের পক্ষে সম্ভব ছিল না।

এর কারণ ব্যাখ্যা করে তারা বরেন, সংস্কৃতি দল বা গ্রুপ নির্ভর। দলের সবাই একে অপরের সঙ্গে কথা বলেন, শেখেন ও অনুকরণ করেন। এই দলভিত্তিক আচরণ, সংস্কৃতি থেকে শেখা, খাপ খাইয়ে নেয়ার পদ্ধতি জিনগত ভাবে টিকে থাকার সুবিধার চেয়ে দ্রুত গতিতে ছড়িয়ে পড়তে পারে।

একজন ব্যক্তি অল্প সময়ে প্রায় সীমাহীন সংখ্যক লোকের কাছ থেকে দক্ষতা ও তথ্য গ্রহণ করতে পারেন এবং ঘুরেফিরে আরও অনেকের কাছে সেই তথ্য ছড়িয়ে দিতে সক্ষম। গবেষকেরা বলছেন মানুষ যত বেশি লোকের কাছ থেকে শিখতে পারছে তত ভাল। বড় দলগুলো ছোট দলের চেয়ে দ্রুত সমস্যার সমাধান করে ও আন্তঃদলীয় প্রতিযোগিতা অভিযোজন ক্ষমতাকে উদ্দীপ্ত করে, যা তাদের টিকে থাকতে সহায়তা করে।

নতুন ধারণা ছড়িয়ে পড়ার সঙ্গে সংস্কৃতিতে নতুন বৈশিষ্ট্যের বিকাশ ঘটে।

বিপরীতভাবে, একজন ব্যক্তি বাবা-মায়ের কাছ থেকে কেবল জেনেটিক তথ্য উত্তরাধিকার সূত্রে পান এবং তাদের ডিম্বাণু বা শুক্রাণুতে তুলনামূলকভাবে মাত্র কয়েকটি এলোমেলো রূপান্তর রেকর্ড করেন। এগুলো তাদের সন্তানদের ছোট গ্রুপের মধ্যে সঞ্চারিত করতে প্রায় ২০ বছর সময় লাগে। এই পরিবর্তনের গতি অনেক ধীর।

গবেষণাটির বিষয়ে ইউনিভার্সিটি অফ ক্যালিফোর্নিয়ার কগনিটিভ অ্যান্ড ইনফরমেশন সায়েন্সেসের সহযোগী অধ্যাপক পল স্মলডিনো বলেন,‘এই থিওরির জন্য অপেক্ষা ছিল দীর্ঘদিনের। বিবর্তনমূলক জীববিজ্ঞান সংস্কৃতির সঙ্গে কীভাবে যোগাযোগ করে তা বর্ণনা করার জন্য অনেকেই দীর্ঘদিন ধরে কাজ করছেন।’

গবেষকদের মতে, মানব সংস্কৃতির উপস্থিতি বিবর্তনের ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ মাইলফলক।

লাইভ সায়েন্সকে স্মলডিনো বলেন, ‘তাদের (দুই গবেষক) বড় দাবি হচ্ছে, মানুষের পরবর্তী বিবর্তনভিত্তিক রূপান্তরের সেতুবন্ধনের জায়গায় রয়েছে সাংস্কৃতিক প্রভাব।’

প্রাণের উদ্ভব ও বিকাশের ক্ষেত্রে এ ধরনের সেতুবন্ধন বিবর্তনের গতিপ্রকৃতির ওপর বিরাট প্রভাব ফেলেছে। ডিএনএযুক্ত কোষের বিবর্তন ছিল এমন একটি বড় পর্যায়। এরপর ক্ষুদ্রাঙ্গ ও জটিল অভ্যন্তরীণ কাঠামোযুক্ত কোষের আবির্ভাব সবকিছুকে বদলে দেয়। প্রাণি ও উদ্ভিদকোষের আবির্ভাব ছিল আরেকটি বড় পরিবর্তন। লিঙ্গের উদ্ভব, ভূ-পৃষ্ঠে জীবনের শুরু- এর সবগুলোই একেকটি বড় মাইলফলক।

এই প্রতিটি ঘটনাই বিবর্তন যেভাবে কাজ করে তাতে বদল এনেছে। গবেষকেরা বলছেন, এখন মানুষ আরও একটি বিবর্তনীয় রূপান্তরের মধ্যে পড়েছে। এখনও জিনগত পরিবর্তন অব্যাহত থাকলেও তা মানুষের টিকে থাকার শর্তকে খুব বেশি নিয়ন্ত্রণ করতে পারছে না।

ওয়ারিং এক বিবৃতিতে বলেন, ‘দীর্ঘমেয়াদে আমাদের প্রস্তাব এই যে, আমরা একক জেনেটিক জীব থেকে পিঁপড়ার বাসা বা মৌমাছির চাকের মতো সুপার অর্গানিজমে পরিণত হওয়া সাংস্কৃতিক গ্রুপে পরিণত হয়েছি।’

আরও পড়ুন:
বাফুফের আর্থিক হিসেবে গড়মিল খুঁজে পেয়েছে ফিফা
দুর্নীতির দায়ে সওজের প্রকৌশলীর কারাদণ্ড
উত্তর ঢাকায় ৮০ লাখ টাকার রোড সুইপার ৬ কোটি টাকায়!
বেশি দামে জমি কিনে কম দামে বেচেন যিনি
সাংবাদিকদের এড়িয়ে গেল ইউজিসির তদন্ত দল

শেয়ার করুন

৫৩ হাজার পরিবারের দুঃখ ঘুচবে আজ

৫৩ হাজার পরিবারের দুঃখ ঘুচবে আজ

বিনা মূল্যের প্রত্যেকটিতে বাড়িতে রয়েছে দুটি করে শয়নকক্ষ, একটি রান্নাঘর, একটি টয়লেট ও একটি লম্বা বারান্দা। ফাইল ছবি

যে ঘরগুলো দেয়া হচ্ছে সেগুলোর প্রত্যেকটিতে রয়েছে দুটি করে শয়নকক্ষ, একটি রান্নাঘর, একটি টয়লেট ও একটি লম্বা বারান্দা। ঘরের নকশা পছন্দ করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নিজেই।

মুজিববর্ষে দ্বিতীয় দফায় ৫৩ হাজার ৩৪০ ভূমিহীন-গৃহহীন পরিবারকে মাথা গোঁজার ঠাঁই করে দিচ্ছে সরকার।

ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে রোববার এ কার্যক্রম শুরু করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণা, ‘মুজিববর্ষে কোনো মানুষ গৃহহীন থাকবে না’ বাস্তবায়নের অংশ হিসেবেই এ উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।

প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের আশ্রয়ণ প্রকল্প-২-এর আওতায় এ ঘরগুলো পাবেন গৃহহীন দরিদ্র পরিবারগুলো।

এর আগে মুজিববর্ষ ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতে ২৩ জানুয়ারি ৬৬ হাজার গৃহহীন পরিবারকে ঘর হস্তান্তর করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ‘মুজিববর্ষে কেউ গৃহহীন থাকবে না’ স্লোগান সামনে রেখেই গৃহহীন পরিবারগুলোকে বিনা মূল্যে ঘর করে দিচ্ছে সরকার।

যে ঘরগুলো দেয়া হচ্ছে সেগুলোর প্রত্যেকটিতে রয়েছে দুটি করে শয়নকক্ষ, একটি রান্নাঘর, একটি টয়লেট ও একটি লম্বা বারান্দা। ঘরের নকশা পছন্দ করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নিজেই।

প্রতিটি বাড়ির নির্মাণে খরচ হচ্ছে এক লাখ ৭১ হাজার টাকা। প্রথম ও দ্বিতীয় পর্যায়ে এ প্রকল্পে খরচ হয়েছে ২ হাজার ২৩৬ কোটি ৩৭ লাখ টাকা।

দেশের ইতিহাসে এর আগে এত মানুষকে এক দিনে সরকারি ঘর হস্তান্তর করা হয়নি। সরকারের পক্ষে থেকে দাবি করা হয়েছে, বিশ্বেই একদিনে এর আগে এত বেশি ঘর বিনা মূল্যে হস্তান্তর করা হয়নি কখনো।

৫৩ হাজার পরিবারের দুঃখ ঘুচবে আজ

প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে গত বৃহস্পতিবার সকালে সরকারপ্রধানের মুখ্য সচিব আহমেদ কায়কাউস এক সংবাদ সম্মেলনে বলেন, ‘এ বছরের ডিসেম্বরের মধ্যে আরও এক লাখ ভূমিহীন-গৃহহীন পরিবারকে বিনা মূল্যে জমিসহ ঘর দেয়ার লক্ষ্যমাত্রা ধার্য করা হয়েছে।

‘এসব গৃহহীন, ভূমিহীন, ছিন্নমূল পরিবারকে শুধু সেমিপাকা ঘরই দেয়া হচ্ছে না; সঙ্গে সঙ্গে স্বামী-স্ত্রীর যৌথ নামে জমির মালিকানাসহ সারা জীবনের জন্য স্থায়ী ঠিকানা দেয়া হচ্ছে। এতে তাদের জীবনযাত্রার মানের পরিবর্তন এসেছে। নারীর ক্ষমতায়নও হচ্ছে।’

কায়কাউস বলেন, ‘এটার অন্য দিক হলো এতে এমপাওয়ারমেন্ট হচ্ছে। একটা লোক যখন রাস্তায় ঘুরে বেড়িয়েছে, মাথায় ছাদ ছিল না, পায়ের নিচে মাটি ছিল না, সে কিন্তু লাখপতি হয়ে যাচ্ছে। জমির মূল্য যদি আমরা হিসাব করি, ৩০ হাজার থেকে ৮ লাখ টাকা প্রতি শতকের দাম পড়ে।

‘গড়ে ধরলে ৫০ হাজার টাকা যদি ধরি জমির মূল্য, ২ লাখ টাকা বাড়ি বানাতে খরচ হচ্ছে। বিদ্যুৎ, গ্যাস মিলিয়ে প্রায় ২ লাখ ৬০ হাজার টাকা সম্পত্তির মালিক হচ্ছে একটি দরিদ্র পরিবার। পাশাপাশি তাদের মাছ চাষ, হাঁস-মুরগি পালন—এসব বিষয়ে প্রশিক্ষণ দেয়া হচ্ছে।’

তিনি বলেন, ‘সরকারি অনেক জমিই অবৈধ দখলে ছিল। সেগুলো উদ্ধার করে দরিদ্র পরিবারগুলোকে পুনর্বাসন করা হচ্ছে। আপনারা রোববার দেখতে পাবেন, শ্রীমঙ্গলে প্রায় ৩৩ একর জমি অবৈধ দখলে ছিল। সেটাতে এখন একটা নান্দনিক পরিবেশ তৈরি হয়েছে।

‘দ্বিতীয় পর্যায়ে ঘরগুলো হস্তান্তরে সব ধরনের প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে। রোববার প্রধানমন্ত্রী এটা উদ্বোধন করবেন।’

‘এখানেই হয়তো ডাক্তার-ইঞ্জিনিয়ার জন্মাবে’

আশ্রয়ণ প্রকল্পের মাধ্যমে ভূমিহীনদের যে ঘর দেয়া হচ্ছে, সরকার আশা করছে, সেখান থেকেই একদিন চিকিৎসক ও প্রকৌশলীর জন্ম হবে। বৃহস্পতিবারের সংবাদ সম্মেলনে মুখ্য সচিব আহমেদ কায়কাউস এ আশা ব্যক্ত করেন।

তিনি বলেন, ‘আমরা প্রত্যাশা করি, যারা এ বাড়িগুলোতে বসবাস করেন, এই বাড়িতেই একদিন ইঞ্জিনিয়ার জন্ম নেবে, ডাক্তার জন্ম নেবে, ম্যাজিস্ট্রেট জন্ম হবে বা রাজনীতিবিদ-মন্ত্রী জন্ম হবে।’

তিনি বলেন, ‘যারা বাড়িগুলো বরাদ্দ পেয়েছেন এগুলোর মালিকানা তাদেরই। আর তারা চাইলে ভবিষ্যতে বাড়িগুলো ভেঙে আরও উন্নত বাড়ি তৈরি করতে পারবেন।’

মুখ্যসচিব কায়কাউস বলেন, ‘যে ভূখণ্ডে তাদের পুনর্বাসন করা হয়েছে, সেটা কিন্তু তাদের নামে রেজিস্ট্রি করে দেয়া। এতে অনেকে হয়তো অজ্ঞতার জন্য বুঝতে পারছেন না কী করবেন। কিন্তু এখানে তার পূর্ণ অধিকার রয়েছে।

‘কেউ যদি মনে করে ভবিষ্যতে অন্যরকম বাড়ি করবে, সেটাও সে করতে পারবে। কারণ সরকার কিন্তু তাকে বাড়ি-জমিসহ দিয়ে দিয়েছে।’

তিনি জানান, আশ্রয়ণ প্রকল্পে যাদের পুনর্বাসন করা হচ্ছে তাদের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থাও করা হচ্ছে। দেয়া হচ্ছে প্রশিক্ষণও।

তিনি বলেন, ‘আমরা গৃহ নির্মাণের জন্য যে জায়গাগুলো সিলেক্ট করেছি, সেগুলো গ্রোথ সেন্টারের পাশে। এর আগে আমরা দেখেছি, ভূমি মন্ত্রণালয় যখন চরাঞ্চলে পুনর্বাসন করেছিল তখন কেউ সেখানে থাকতে আগ্রহী হচ্ছিলেন না। এ কারণে সচেতনভাবেই আমরা চেষ্টা করছি তারা যেন কাজ পায় এমন জায়গায় তাদের বাড়ি দিতে।

‘প্রথম পর্যায়ে যে ৭০ হাজার পরিবারকে ঘর দেয়া হয়েছে সেখানে বেশির ভাগেরই কর্মসংস্থান হয়েছে। ঘরের আঙিনাতে অনেকে চাষাবাদ করছেন, কেউ হয়তো ছোট করে দোকান শুরু করেছেন, মুরগি-ছাগল এগুলো পালন করছেন।’

প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ের সচিব তোফাজ্জল হোসেন সংবাদ সম্মেলনে জানান, মালিকানা থাকলেও চাইলেই কেউ জমিগুলো অন্য কারও কাছে হস্তান্তর করতে পারবে না।

তিনি বলেন, ‘এই জমিগুলো তাদের দিয়ে দেয়া হয়েছে। তাদের মিউটেশন বা নামজারিও করে দেয়া হয়েছে, সরেজমিনে দখলও দিয়েছি। এই জমিগুলোতে মুজিব শতবর্ষের একটা সিল দেয়া আছে। উপজেলা প্রশাসন বা জেলা প্রশাসনকে বলা আছে, যদি এটা কেউ অন্যায়ভাবে বা জোর করে হস্তান্তর করতে যায়, এটা যাতে সহজে ট্র্যাক করা যায় সেই ব্যবস্থা রাখতে।

‘ফলে এটি হস্তান্তর করতে গেলেই জানাজানি হয়ে যাবে। এ পর্যায়ে হস্তান্তরের কোনো সুযোগ নেই। আইডেন্টিফাই করার কিছু চিহ্ন কিন্তু প্রত্যেক দলিলে আমরা ব্যবহার করেছি।’

আরও পড়ুন:
বাফুফের আর্থিক হিসেবে গড়মিল খুঁজে পেয়েছে ফিফা
দুর্নীতির দায়ে সওজের প্রকৌশলীর কারাদণ্ড
উত্তর ঢাকায় ৮০ লাখ টাকার রোড সুইপার ৬ কোটি টাকায়!
বেশি দামে জমি কিনে কম দামে বেচেন যিনি
সাংবাদিকদের এড়িয়ে গেল ইউজিসির তদন্ত দল

শেয়ার করুন

আগাম জামিনের সুযোগ মিলবে কবে?

আগাম জামিনের সুযোগ মিলবে কবে?

হাইকোর্টে বন্ধ রয়েছে আগাম জামিনের দরজা। কবে নাগাদ আগাম জামিনের সুযোগ মিলবে সুনির্দিষ্ট করে সেটি কেউ বলতে পারছে না কেউ। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, এতে করে বিচারপ্রার্থীদের অধিকার লঙ্ঘিত হওয়ার পাশাপাশি ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন আইনজীবীরা।

জমি সংক্রান্ত বিরোধে কিশোরগঞ্জের তাড়াইল উপজেলায় এক জন খুন হওয়ার পর তাড়াইল থানায় ২৫ জনকে আসামি করে মামলা হয়। এ মামলার আসামি মনু মিয়াসহ কয়েক জন আগাম জামিনের আশায় হাইকোর্টে এসেছিলেন। তবে হাইকোর্টে আগাম জামিন বন্ধ থাকায় পালিয়ে থেকেই দিন কাটছে তাদের।

তাদের আইনজীবী জানিয়ে দিয়েছেন, আগাম জামিনের পথ খুললে তবেই তিনি হাইকোর্টে আবেদন করতে পারবেন।

একইভাবে ভাংচুর, অগ্নিসংযোগসহ বিভিন্ন মামলায় শতাধিক ব্যক্তির আগাম জামিন আবেদন তৈরি করে রেখেছেন সুপ্রিমকোর্টের আইনজীবী জামিউল হক ফয়সাল। তবে আগাম জামিনের এখতিয়ারসম্পন্ন বেঞ্চ না থাকায় আবেদন করতে পারছেন না তিনি।

করোনাভাইরাসের দ্বিতীয় ঢেউয়ের কারণে উচ্চ আদালতের কার্যক্রম কিছু দিন বন্ধ থাকার পর ৪ এপ্রিল থেকে ধীরে ধীরে ভার্চুয়ালি চালু হয় হাইকোর্ট বিভাগের বেঞ্চ। রোববার সবগুলো বেঞ্চে ভার্চুয়ালি বিচারকাজ শুরু হচ্ছে।

তবে বন্ধ রয়েছে আগাম জামিনের দরজা। কবে নাগাদ আগাম জামিনের সুযোগ মিলবে সুনির্দিষ্ট করে সেটি কেউ বলতে পারছে না কেউ। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, এতে করে বিচারপ্রার্থীদের অধিকার লঙ্ঘিত হওয়ার পাশাপাশি ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন আইনজীবীরা।

আইনজ্ঞরা বলছেন, বিচারিক আদালতে আত্মসমর্পণের পথ খোলা আছে, একই সঙ্গে গ্রেপ্তারও বহাল আছে, কিন্তু আগামী জামিন বহাল নেই। ফলে ভার্চুয়ালি হলেও উচ্চ আদালতে আগাম জামিন পাওয়ার সুযোগ রাখা উচিত।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে সাবেক আইনমন্ত্রী ব্যারিস্টার শফিক আহমেদ নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আগাম জামিনের পথ খুলে দেয়া উচিত। যদি প্রমাণিত হয় বিনা কারণে কাউকে ধরতে চাচ্ছে বা গ্রেপ্তার করতে চাচ্ছে, আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা করতে হলে নাগরিক হিসেবে তার অধিকার রয়েছে আদালতে এসে জামিন নেয়া। ভার্চুয়ালি হোক কিংবা স্বাস্থ্যবিধি মেনে আদালতে হাজির হয়ে হোক, ব্যক্তির আগাম জামিনের সুযোগ রাখা উচিত বলে আমি মনে করি।’

তিনি বলেন, ‘এক্ষেত্রে আদালত যে আদেশ দেবে সেটাই তো তাকে মানতে হবে। আদালত যদি তাকে গ্রেপ্তার করতে নির্দেশ দেয় তাহলে পুলিশ তাকে গ্রেপ্তার করে নিয়ে যাবে। আর আদালত যদি তাকে জামিন দেয় তাহলে সে জামিন পাবে। এটি খুলে দেয়া উচিত।’

জ্যেষ্ঠ আইনজীবী খন্দকার মাহবুব হোসেন নিউজবাংলাকে বলেন, ‘করোনার কারণে দীর্ঘ দিন ধরে হাইকোর্টে আগাম জামিন বন্ধ রয়েছে। তার ফলে নাগরিকদের আইনশৃংখলা বাহিনীর হাতে বিভিন্নভাবে নির্যাতিত হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। আগাম জামিন না পাওয়ার ফলে একটি আতঙ্কের মধ্যে দিন কাটছে তাদের। মানুষের মৌলিক অধিকার দেয়া অর্থাৎ আইনশৃংখলা বাহিনী কর্তৃক অযথা হয়রানি থেকে বাচাতে ভার্চুয়ালি আদালতগুলোতে ফৌজদারি মামলার মোশন যে কোর্টে আছে সেখানে আগাম জামিনের আবেদনের সুযোগ দেয়া উচিত।’

তিনি বলেন, ‘আগাম জামিনে বিচারপ্রার্থীকে আদালত হাজির হতে হবে এমন কোনো কথা নাই। তার যে আইনজীবী থাকবেন তিনিই তাকে প্রত্যয়ন করবেন। আগাম জামিন না দিলে বিচারপ্রার্থী মানুষ অযথা হয়রানির শিকার হবে বলেও মন্তব্য করেন তিনি।’

জ্যেষ্ঠ আইনজীবী মুনসুরুল হক চৌধুরী নিউজবাংলাকে বলেন, ‘সব কোর্ট খুলে দিয়েছে, এটা ভালো দিক। তবে কোর্ট মনে করলে আগাম জামিন খুলে দিতে পারে। দেশের পরিস্থিতি বিবেচনায় নিয়ে আগাম জামিন খুলে দেয়া উচিত।’

তিনি বলেন, ‘আগাম জামিনের নিয়ম হলো কোর্টের সামনে আসামিকে উপস্থিত থাকতে হবে। এখন দেখা গেল এক সঙ্গে ১০/১৫ আসামি কোর্টে উপস্থিত হয়। এই কারণে কোর্ট যদি মনে করেন এটা তাদের স্বাস্থ্য নিরাপত্তার ঝুকি হবে, তাহলে কোর্ট সে সিদ্ধান্ত নিতে পারেই। সংক্রমণের শঙ্কা থেকেই এমন সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে বলে আমার মনে হয়েছে। তবে এতে আসামিদের অধিকার লঙ্ঘিত হচ্ছে বলে আমি মনে করি না।’

সুপ্রিমকোর্ট আইনজীবী সমিতির সম্পাদক ব্যারিস্টার রুহুল কুদ্দুস কাজল নিউজবাংলাকে বলেন, ‘হাইকোর্ট বিভাগের সবগুলো বেঞ্চ ভার্চুয়ালি খুলে দেয়া হয়েছে, কিন্তু আগাম জামিনের পথটি বন্ধ রয়েছে। এর ফলে আমি মনে করি, সব আদালত খুলে দেয়া অর্থপূর্ণ হলো না। আগাম জামিনসহ মানুষের ন্যায়বিচার পাওয়ার সবগুলো পথ খুলে দিলেই বলা যেত, প্যানডেমিক বিবেচনায় নিয়ে এটি করা হয়েছে। বিভিন্ন ক্ষেত্রে রাজনৈতিক মামলাও হচ্ছে, এক্ষেত্রে তারা আইনের আশ্রয় নেয়ার অধিকার থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। এর ফলে দ্রুত কার্যকর ন্যায়বিচার প্রাপ্তির ক্ষেত্রে সবাই সমান সুযোগ পাবে না।’

এ বিষয়ে জানতে চাইলে রাষ্ট্রের প্রধান আইন কর্মকর্তা অ্যাটর্নি জেনারেল এ এম আমিন উদ্দিন নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আগাম জামিনের বিষয়টি খুলে দেবেন কিনা সেটা কোর্ট বিবেচনা করবেন। প্রধান বিচারপতি বিষয়টি বিবেচনা করে সিদ্ধান্ত নেবেন।’

জানতে চাইলে সুপ্রিমকোর্টের বিশেষ কর্মকর্তা মোহাম্মদ সাইফুর রহমান নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আগাম জামিন বন্ধ আছে।’

কবে নাগাদ খুলবে সে বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘এটা তো আমি বলতে পারব না। যে দিন সিদ্ধান্ত হবে, তারপর থেকেই খুলবে।’

করোনার দ্বিতীয় ঢেউ শুরু হলে বন্ধ ঘোষণা করা হয় দেশের সব আদালত। কিছু দিন বন্ধ থাকার পর তথ্য প্রযুক্তি ব্যবহার করে পর্যায়ক্রমে সীমিত পরিসরে ভার্চুয়াল কোর্টে বিচার কাজ শুরু হয়। এরপর দফায় দফায় কোর্ট সংখ্যা বাড়ানো হয়। সবশেষ গত বৃহস্পতিবার হাইকোর্ট বিভাগের সবগুলো বেঞ্চ খুলে দেয়া হয়।

প্রধান বিচারপতির আদেশে সবগুলো বেঞ্চের তালিকা সুপ্রিমকোর্টের ওয়েবসাইটে বৃহস্পতিবার প্রকাশ করা হয়েছে।

হাইকোর্ট বিভাগের এই ৫৩টি বেঞ্চের মধ্যে ১৪টি বেঞ্চকে ফৌজদারি মোশনের ক্ষমতা দেয়া হলেও তাতে আগাম জামিন আবেদন নিষ্পত্তির এখতিয়ার দেয়া হয়নি।

এসব বেঞ্চের ক্ষেত্রে বলা হয়েছে, দুর্নীতি দমন কমিশন আইন, মানি লন্ডারিং আইন ও আগাম জামিনের আবেদনপত্র ব্যতীত ডিভিশন বেঞ্চে গ্রহণযোগ্য ফৌজদারি মোশনের শুনানি হবে।

করোনাভাইরাসের দ্বিতীয় ঢেউ শুরুর পর এপ্রিল মাসের শুরুতে চারটি ভার্চুয়াল বেঞ্চ গঠন করেছিলেন প্রধান বিচারপতি। পরে ২২ এপ্রিল আরও দুটি বেঞ্চ গঠন করা হয়। এরপর ২৯ এপ্রিল আরও তিনটি যোগ করা হয়।

এ নয়টি বেঞ্চের পাশাপাশি ২২ মে আরও সাতটি বেঞ্চ গঠন করা হয়। গত ৩১ মে আরেকটি আদেশে ২১টি বেঞ্চ গঠন করে দেন প্রধান বিচারপতি।

সব শেষ গত ১০ জুন আরও কয়েকটি নতুন বেঞ্চ গঠন করেন প্রধান বিচারপতি। তখন সংখ্যা দাঁড়ায় ৩০ এ। বৃহস্পতিবার সব মিলিয়ে ৫৩ বেঞ্চ খুলে দিলেন প্রধান বিচারপতি।

আরও পড়ুন:
বাফুফের আর্থিক হিসেবে গড়মিল খুঁজে পেয়েছে ফিফা
দুর্নীতির দায়ে সওজের প্রকৌশলীর কারাদণ্ড
উত্তর ঢাকায় ৮০ লাখ টাকার রোড সুইপার ৬ কোটি টাকায়!
বেশি দামে জমি কিনে কম দামে বেচেন যিনি
সাংবাদিকদের এড়িয়ে গেল ইউজিসির তদন্ত দল

শেয়ার করুন

মাছ শিকারি একদল যাযাবর

মাছ শিকারি একদল যাযাবর

পলিথিনে বানানো অস্থায়ী ঝুপড়ি ঘরে গাদাগাদি করে যাযাবর জীবন যাপন করছে জেলে পরিবারগুলো। ছবি: নিউজবাংলা

বংশী নদীর তীর ঘেঁষে গোয়ালট্যাক চকে অস্থায়ী আবাস গেড়েছে মাছ শিকারি কিছু যাযাবর পরিবার। প্রায় তিন মাস পলিথিনের তৈরি ঘরে তারা বসবাস করছে নির্জন প্রান্তরে। প্রতিবছর এরা আসে নাটোর জেলার বড়াইগ্রাম থেকে।

শহুরে কোলাহলের পাশে নিস্তব্ধ জঙ্গল। চারদিক পানিতে ঘেরা ছোট্ট টিলায় কাশবনের আড়ালে গুটি কয়েক মানুষের বসবাস। কোনো রকমে দুমুঠো খাবার আর মলিন পোশাক ছাড়া বাকি মৌলিক চাহিদা নাগালের বাইরে তাদের।

পলিথিনে বানানো অস্থায়ী ঝুপড়ি ঘরে গাদাগাদি করে যাযাবর জীবন যাপন করছে জেলে পরিবারগুলো। রাতে শিয়াল আর সাপের আতঙ্ক যেন তারা মেনেই নিয়েছে জীবনের অংশ হিসেবে। তবে শিশু আর বয়োবৃদ্ধদের নিয়ে উৎকণ্ঠা বেশি।

রাজধানীর নিকটবর্তী সাভার উপজেলা সবার কাছে পরিচিত শিল্পাঞ্চল হিসেবে। দ্রুত শিল্পায়নের ফলে একসময়কার পল্লিপ্রান্তর এখন আধুনিক শহর। এখানে বসবাস প্রায় ২০ লাখ মানুষের।

আশুলিয়ার নলাম এলাকায় বংশী নদীর তীর ঘেঁষে গোয়ালট্যাক চকে অস্থায়ী আবাস গড়েছে মাছ শিকারি কিছু যাযাবর পরিবার। প্রায় তিন মাস পলিথিনের তৈরি ঘরে তারা বসবাস করছে নির্জন প্রান্তরে। এরা নাটোর জেলার বড়াইগ্রাম থানার নগরথানাই খাড়া গ্রামের ৪ নম্বর ইউনিয়ন পরিষদের বাসিন্দা।

স্থানীয় লোকজন বলছেন, প্রতিবছর বর্ষা মৌসুমের কয়েক মাস আগে থেকে ওই জঙ্গলের টিলা গোয়ালট্যাক চকে আসে যাযাবর পরিবারগুলো। রাতভর নৌকা নিয়ে তারা বংশী নদীতে মাছ ধরার জন্য চাই (ফাঁদ) পাতে। সকালে সেই মাছ আশপাশের বিভিন্ন হাটবাজারে বিক্রি করেন।

মাঝেমধ্যে এলাকার লোকজন তাদের কাছ থেকে দেশীয় প্রজাতির শিং, টাকি, ট্যাংরাসহ বিভিন্ন মাছ কিনে নেয়। কিন্তু স্থানীয় লোকজনের অনেকেই দাম কম দেন। আবার কখনও জোর করে মাছ নিয়েও চলে যান। এ জন্য স্থানীয় লোকজনের কাছে অনেক সময় তারা মাছ বিক্রি করতে চান না।

নলাম এলাকার কয়েক কিলোমিটার মেঠোপথ আর কাশবন পেরিয়ে এই চকে গিয়ে দেখা যায়, বংশী নদীর পাশে জঙ্গলের ভেতর ছোট ছোট বেশ কয়েকটি ঘর। বাঁশের কাঠামোর সঙ্গে পলিথিন মুড়িয়ে বসবাসের জন্য তৈরি করা হয়েছে এসব অস্থায়ী নিবাস। ভেতরে ছোট্ট পরিসরের মধ্যে একেকটি ঘরে গাদাগাদি করে থাকছেন পাঁচ-ছয়জন। ওই জায়গাতেই রান্নার জন্য বসানো হয়েছে চুলা। সুপেয় পানির ব্যবস্থা না থাকায় দূর থেকে আনতে হয়।

মাছ শিকারি একদল যাযাবর

দুপুর ১২টা নাগাদ এসব জেলে পরিবারের কর্তাদের দেখা মেলে না। তারা চলে যান নদীতে রেখে আসা ফাঁদ থেকে মাছ সংগ্রহ করতে। আর স্ত্রীরা তখন রান্নাবান্না আর শিশুদের নিয়ে ব্যস্ত। মাছ শিকারিদের স্ত্রী-সন্তানদের সঙ্গে কথা হয় নিউজবাংলার। তারা জানান তাদের নানান দুঃখ-দুর্দশা আর হতাশার কথা।

জেলে ইসরাফিল খাঁর স্ত্রী হাসি বেগম নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আমাগে দেশের বড়াইগ্রামে পরায় সবার এটাই পেশা। আমরা একিনে মাছ ধরি। তাই আমরা এই খালের পাড়েই থাকি। বাসা ভাড়া আমেগে দিলে পুসায় না। তাই পোলাপান লিয়া কষ্ট করে আমরা একিনেই থাকি। খালি খাওয়ার পানিটা টানেথেন টাইনা আনি। আর গোসল-মোসলতো সব নদীতেই করি। এভাবেই আমাগের জীবন কাটে।

‘পরায় ৫-৬ মাস থাকি আমরা এই জায়গায়। তারপরে আবার দ্যাশে যাই। বান আসার সময় হইলে আবার আমরা চইলা আসি।’

মাছ শিকারি একদল যাযাবর

বিরান জায়গায় নিরাপত্তার অভাব নিয়ে প্রশ্ন করলে হাসি বেগম বলেন, ‘পরায় আমরা অনেক দিন যাবৎ একিনে আসা-যাওয়া করি। এই গিরামডা আমাগে নিজেগো গিরামের মতো হয়্যা গেছে, সবাই পরিচিত। ত্যা আমার একিনে অন্য কোনো সমেস্যা নাই। অন্য গিরামে গেলেও আশেপাশেই থাকি। তারপরে অনেক পানি যখন হয়্যা যায়, তখন অন্য জায়গায় যাই।

‘শিয়াল বিরক্ত করে। অনেক সাপ আছে এই জায়গায়। আমরা সাপ দেখিও মারি না। অনেক সময় ঘরের ভিতর, বিছনার ভিতর সাপ দেখা যায়। আমরা তাড়ায়া দেই। তাগো শরীলে আঘাত করি না। শিয়াল-সাপের ডরে অনেকেই আসে না এই পাড়ার। তা-ও আমরা এই জাগায় বসবাস করি।’

নদীতে মাছ পাওয়া না গেলে সমস্যার বিষয়ে বলেন, ‘আমাগের কষ্টই হয়। হয়তে কেউ সাইডে কাজে যাই। কেউ কামলা দিতে যায়। এইভাবেই দিনকাল কাটে। আমরা সবাই খুব অভাবী মানুষ।'

সরকারি কোনো সহযোগিতা পেয়েছেন কি না, এমন প্রশ্নে বলেন, ‘প্রোকিতোই (প্রকৃত) আমরা মৎসজীবী। আমরা মাছ ধরি খাই। আমাদের মৎসজীবীর কাড করি দিছে সরকার থেকে। কতা ছিল, যে ছয় মাস পানি থাকে না, এই ছয় মাস আমাগের সরকার থাকি খাবার দিবি। এখন আমরা কোনো অনুদানি পাই না। গিরামের যারা নেতা আছেন তাগের কাছে বললে কয়, য্যাখিন সময় হয় তখুন দিবি। আমাগের কাড আছে কিন্তু আমরা এখুনো কোনো অনুদান পাইয়া সারি নাই।

মাছ শিকারি একদল যাযাবর

হাসি বেগমের ছোট ছেলে পুরোদস্তুর জেলে কিশোর আল আমিন নিউজবাংলাকে বলেন, ‘পানির ভিতরে নিয়া মাছের ফাঁদ পাইতা থুই। রাতের দিক দিয়া পাতি। সকাল বেলা ওঠাই। আবার বিকালে পাইতা থুইয়া আসি। পরে চেংটি, টাহি, খইলশা, দুই-চারডা সিংগি মিংগি পাওয়া যায় আরকি। মাছ ধরতে অনেক ভাল্লাগে।’

নলাম এলাকার বাসিন্দা আশরাফ হোসেন কামাল নিউজবাংলাকে বলেন, ‘বর্ষা মৌসুম আসার আগে ওই চকে জেলেদের প্রায় ১০-১৫টি পরিবার আসে মাছ ধরতে। তারা বংশী নদীর তীরে জঙ্গলের মধ্যে পলিথিনের তৈরি ঘরে বসতি গড়ে। ওখানেই ছয়-সাত মাস থেকে আবার চলে যায়। আমরা যারা এলাকায় থাকি, তারা নদীর দেশীয় মাছ তাদের কাছ থেকে তুলনামূলক কম দামে পাই। কিন্তু এলাকার অনেক প্রভাবশালী ব্যক্তি মাঝেমধ্যে মাছ নিয়ে নামমাত্র টাকা দেয়। আবার অনেকে টাকা না দিয়েই মাছ নিয়ে চলে যায়। এ জন্য তারা স্থানীয়দের কাছে মাছ বিক্রি করতে চান না।’

ঢাকা জেলার সাভার উপজেলার সিনিয়র মৎস্য কর্মকর্তা কামরুল ইসলাম বলেন, ‘টাকা না দিয়ে কেউ জোর করে মাছ নিয়ে যাওয়ার ঘটনা ঘটলে বিষয়টা স্থানীয় থানাকে জানাতে হবে। পাশাপাশি ইউএনও মহোদয়কেও লিখিতভাবে অবহিত করলে এ বিষয়ে আমরা ব্যবস্থা নেব।’

নাটোর জেলার বড়াইগ্রাম উপজেলার সিনিয়র মৎস্য অফিসার জাহাঙ্গীর আলম নিউজবাংলাকে বলেন, ‘চার-পাঁচ বছর আগে একটা সরকারি প্রজেক্টের মাধ্যমে রাজশাহী প্রকল্প থেকে মৎসজীবী কার্ড দেয়া হয়েছে। গত অর্থবছরে রাজশাহী প্রকল্প থেকে ৪০ জনের একটা বরাদ্দ দিয়েছিল কমিটির মাধ্যমে, ওটা দিয়েছি। এদিকে খাদ্য সহায়তা নাই। এদিকে মৎস্য আইন বাস্তবায়ন হয় না। দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলে যেখানে সাগরে মাছ ধরা নিষিদ্ধ থাকে, সেসব অঞ্চলে দেয়া হয় এগুলো।’

আরও পড়ুন:
বাফুফের আর্থিক হিসেবে গড়মিল খুঁজে পেয়েছে ফিফা
দুর্নীতির দায়ে সওজের প্রকৌশলীর কারাদণ্ড
উত্তর ঢাকায় ৮০ লাখ টাকার রোড সুইপার ৬ কোটি টাকায়!
বেশি দামে জমি কিনে কম দামে বেচেন যিনি
সাংবাদিকদের এড়িয়ে গেল ইউজিসির তদন্ত দল

শেয়ার করুন

‘তদন্ত কর্মকর্তা নিজেই পুচি ফ্যামিলির ফ্যান’

‘তদন্ত কর্মকর্তা নিজেই পুচি ফ্যামিলির ফ্যান’

রীদি বলেন, ‘খোঁজ নিয়ে নিশ্চিত হয়েছি, তদন্ত কর্মকর্তা ও পুচি ফ্যামিলির তাপসীর স্বামী পার্থ চৌধুরীর বাড়ি চট্টগ্রামে। তারা পূর্বপরিচিত। তার ওপর তাপসীর টপ ফ্যান হিসাবে নিজেই স্বীকার করেছেন। তাই এই পুলিশ কর্মকর্তার ওপর আমাদের আস্থা নেই।’

পুচি ফ্যামিলির তাপসী দাশের বিরুদ্ধে বিড়াল নির্যাতনের দুটি অভিযোগের তদন্ত কর্মকর্তা এসআই শরিফুল ইসলাম নিজেই তাপসী দাশের ফ্যান। এ কারণে তাপসীর বিরুদ্ধে মুখে মুখে ব্যবস্থা গ্রহণের কথা বললেও গোপনে তাকে সহযোগিতা করছেন।

নিউজবাংলার কাছে এমন অভিযোগ করেছেন এএলবি অ্যানিমাল শেল্টারের চেয়ারম্যান দীপান্বিতা রীদি।

তিনি বলেন, ‘তদন্ত কর্মকর্তা প্রথম দিকে আমাদের অভিযোগ পড়েই বলে ওঠেন, আরে পুচি ফ্যামিলিকে তো আমি চিনি। আমি ওদের টপ ফ্যান। কবে কোন বিড়ালের বিয়ে দিয়েছে, সব মুখস্থ আমার।'

রীদি বলেন, ‘তার এমন কথা শুনেই আমাদের সন্দেহ হয়েছিল। আজ তার প্রমাণ পেলাম। কারণ উনি বিড়াল উদ্ধারের কথা বলে তাপসীর বাসায় যান। ফিরে এসে বলেন, বাসায় তালা।’

রীদি প্রশ্ন রেখে বলেন, ‘বাসায় তালা হলে ভেতর থেকে লাইভ করছে কীভাবে? কারণ আজকেও তিনি লাইভ ভিডিও প্রচার করেছেন ইউটিউবে। খোঁজ নিয়ে নিশ্চিত হয়েছি, তদন্ত কর্মকর্তা ও পুচি ফ্যামিলির তাপসীর স্বামী পার্থ চৌধুরীর বাড়ি চট্টগ্রামে। তারা পূর্বপরিচিত। তার ওপর তাপসীর টপ ফ্যান হিসাবে নিজেই স্বীকার করেছেন। তাই এই পুলিশ কর্মকর্তার ওপর আমাদের আস্থা নেই।’

এসব প্রসঙ্গে জানতে চাইলে তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই শরিফুল ইসলাম বলেন, ‘পুচি ফ্যামিলির ফলোয়ার ৪০ হাজারের ওপরে। সেটা কে না দেখে। এখানে ফ্যান হওয়ার কী আছে?’

পুচি ফ্যমিলির তাপসী আপনার পূর্বপরিচিত কি না এমন প্রশ্নে তদন্তকারী কর্মকর্তা বলেন, ‘তাপসীর স্বামী পার্থ চৌধুরীর বাড়ি চট্টগ্রামে। আমার বাড়ি কিশোরগঞ্জে। আর তাপসীর বাড়ি আড়াইহাজারে। তাকে কয়েক দিন ফোন করেছি, কখনও বলেছেন নরসিংদীতে, কখনও বলেছেন নারায়ণগঞ্জে। আজকেও ফোন করেছি, বলেছেন পুরান ঢাকায় আছেন। তার বাসায় গিয়ে কাউকে পাইনি। শুধু ১৫ থেকে ২০টা বিড়াল দেখেছি।’

লিখিত অভিযোগের আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে এসআই শরিফুল বলেন, ‘মনিরা নামে এক নারী তার বিড়াল আটকে রেখেছে বলে তাপসীর বিরুদ্ধে অভিযোগ করেন, সেই বিড়াল উদ্ধারের জন্যই গিয়েছিলাম।’

এএলবি অ্যানিমাল শেল্টারের বিড়াল নির্যাতনের অভিযোগ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘বিড়ালরে যে মারছে মেডিক্যাল সার্টিফিকেট আছে? এটা কী ধরনের অভিযোগ? এটা প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয় কিংবা অধিদপ্তরে অভিযোগ করে তাদের মাধ্যমে আসলে কিংবা আদালতের মাধ্যমে আসলে আমরা ব্যবস্থা গ্রহণ করব। অন্যথায় এ বিষয়ে আমরা কিছু করতে পারব না।’

এএলবি অ্যানিমাল শেল্টারের বিড়ালপ্রেমীরা জানান, বুধবার সকাল থেকে বিকাল পর্যন্ত তারা থানা পুলিশ, মিরপুর ডিওএইচএসের পরিষদ ও খামারবাড়ি প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরে ঘুরেছেন নির্যাতনের শিকার বিড়ালগুলো উদ্ধারের জন্য।

দীপান্বিতা রীদি বলেন, ‘ডিওএইচএসের পরিষদ থেকে তাপসীর বাসায় অভিযান চালানোর সম্মতি দেয়া হলেও পুলিশের তদন্ত কর্মকর্তা আমাদের না নিয়ে তালা মারা দেখে ফিরে এসেছেন বলে দাবি করেন। পরে থানার ওসির কাছে গেলে তিনি জানান, লাইভ স্টকে মামলা করা ছাড়া তারা কোনো ব্যবস্থা নিতে পারবেন না।’

তিনি বলেন, ‘এরপর কর্মীরা খামারবাড়ি প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরে যান। সেখান থেকে বলা হয়, থানাতেই মামলা করতে হবে। সে ক্ষেত্রে পুলিশ চাইলে লাইভ স্টক থেকে একজন প্রতিনিধি পাঠাতে পারেন। আইনগত ব্যবস্থা থানাকেই নিতে হবে।’

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুক - ইউটিউবে বিড়ালের নানা কর্মকাণ্ডের ভিডিও প্রচার নিয়ে আলোচিত-সমালোচিত ‘পুচি ফ্যামিলি’ র তাপসী দাশ। তার বিরুদ্ধে বিড়াল নির্যাতনের অভিযোগে গত ১৩ জুন পল্লবী থানায় দুটি লিখিত অভিযোগ জমা দেন এএলবি অ্যানিমাল শেল্টারের তাজকিয়া দিলরুবা ও বিড়ালপ্রেমী আরেক নারী। ওই দুটি লিখিত অভিযোগে বিড়ালের ওপর নানা ধরনের নির্যাতনের অভিযোগ করা হয়।

আরও পড়ুন:
বাফুফের আর্থিক হিসেবে গড়মিল খুঁজে পেয়েছে ফিফা
দুর্নীতির দায়ে সওজের প্রকৌশলীর কারাদণ্ড
উত্তর ঢাকায় ৮০ লাখ টাকার রোড সুইপার ৬ কোটি টাকায়!
বেশি দামে জমি কিনে কম দামে বেচেন যিনি
সাংবাদিকদের এড়িয়ে গেল ইউজিসির তদন্ত দল

শেয়ার করুন

গার্ড অফ অনারে ‘নিষেধের’ সুপারিশ: ক্ষুব্ধ নারী ইউএনওরা

গার্ড অফ অনারে ‘নিষেধের’ সুপারিশ: ক্ষুব্ধ নারী ইউএনওরা

সাভারে গার্ড অফ অনারে সাবেক ইউএনও শামীম আরা নিপা। ফাইল ছবি

বীর মুক্তিযোদ্ধার মৃত্যুর পর ‘গার্ড অব অনার’ দেয়ার সময় নারী কর্মকর্তাদের বিকল্প খোঁজার সুপারিশ করেছে সংসদীয় কমিটি। বিষয়টি নিয়ে নিউজবাংলা কথা বলেছে দেশের বিভিন্ন উপজেলায় কর্মরত নারী ইউএনওদের সঙ্গে। তারা বলছেন, এই সুপারিশের মাধ্যমে নারীকে হেয় করার পাশাপাশি তাদের রাষ্ট্রীয় দায়িত্বকে বিতর্কিত করা হচ্ছে।

বীর মুক্তিযোদ্ধার মৃত্যুর পর তাকে ‘গার্ড অফ অনার’ দেয়ার সময় সরকারের নারী কর্মকর্তাদের উপস্থিতি নিয়ে মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সংসদীয় স্থায়ী কমিটির আপত্তিতে ক্ষুব্ধ নারী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তারা।

তারা বলছেন, এটি সংবিধানের সঙ্গে সাংঘর্ষিক। খোঁড়া যুক্তি দেখিয়ে ধর্মের বিষয়টিকে সামনে আনা হচ্ছে।

মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয়-সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির ১৯তম বৈঠক হয় রোববার। এ সময় বীর মুক্তিযোদ্ধার মৃত্যুর পর তাকে ‘গার্ড অফ অনার’ দেয়ার সময় নারী কর্মকর্তাদের উপস্থিতিতে আপত্তি জানিয়ে বিকল্প খোঁজার সুপারিশ করে কমিটি।

সংসদীয় এই কমিটির সভাপতি হিসেবে আছেন শাজাহান খান। সদস্য হিসেবে বৈঠকে অংশ নেন মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক, রাজি উদ্দিন আহমেদ, মেজর (অব.) রফিকুল ইসলাম (বীর উত্তম), কাজী ফিরোজ রশীদ, ওয়ারেসাত হোসেন বেলাল ও মোছলেম উদ্দিন।

সরকারের নির্দেশনা অনুযায়ী, কোনো বীর মুক্তিযোদ্ধা মারা যাওয়ার পর তাকে রাষ্ট্রীয় সম্মান জানায় প্রশাসন। গার্ড অফ অনার দিতে সরকারের প্রতিনিধি হিসেবে উপস্থিত থাকেন জেলা প্রশাসক (ডিসি) বা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও)। রাষ্ট্রীয় সম্মানের অংশ হিসেবে সরকারের প্রতিনিধি হয়ে মরদেহে ফুলেল শ্রদ্ধাও জানান ওই সংশ্লিষ্ট সরকারি কর্মকর্তা।

মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক স্থায়ী কমিটির বৈঠকের পর শাহজাহান খান নিউজবাংলাকে বলেন, ‘এই প্রশ্ন আসছে ধর্মীয় অনুভূতি থেকে। কোনো কোনো জায়গা থেকে বলা হয়েছে, জানাজায় নারীরা অংশ নিতে পারেন না।’

‘গার্ড অফ অনার সাধারণত জানাজার সময় দেয়া হয়’ জানিয়ে স্থায়ী কমিটির সভাপতি বলেন, ‘এ জন্য এই ইয়েটা (সুপারিশ) আসছে। যদি গার্ড অফ অনার জানাজার আগে দেয় বা পরে দেয়, তখন জানাজা থাকে না। সেইটা একটা জিনিস। আমরা দেখেছি, সব জায়গায় জানাজার সময় গার্ড অফ অনার দেয়। ওই জায়গায় ধর্মীয় অনুভূতির বিষয়টি বিবেচনা করে এটা সুপারিশ করা হয়েছে।’

গার্ড অফ অনারে ‘নিষেধের’ সুপারিশ: ক্ষুব্ধ নারী ইউএনওরা

তিনি বলেন, ‘মহিলার বিকল্প একজন পুরুষকে দিয়ে গার্ড অফ অনার দেয়ার বিষয়টি এসেছে। আমরা মন্ত্রণালয়কে এটা পরীক্ষা করে দেখতে বলেছি।’

বিষয়টি নিয়ে নিউজবাংলা কথা বলেছে দেশের বিভিন্ন উপজেলায় কর্মরত নারী ইউএনওদের সঙ্গে। তারা বলছেন, এই সুপারিশের মাধ্যমে নারীকে হেয় করার পাশাপাশি তাদের রাষ্ট্রীয় দায়িত্বকে বিতর্কিত করা হচ্ছে।

চট্টগ্রামের বোয়ালখালীর ইউএনও নাজমুন নাহার নিউজবাংলাকে বলেন, ‘প্রথমত আমি এই সুপারিশের তীব্র প্রতিবাদ জানাচ্ছি। গার্ড অফ অনার রাষ্ট্রীয় দায়িত্ব। এটার সঙ্গে ধর্মকে টেনে আনা অযৌক্তিক।’

তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশের সংবিধান নারী-পুরুষের সমান অধিকার নিশ্চিত করতে বলেছে। এই সুপারিশ সংবিধানবিরোধী। এখানে নারীকে ছোট করা হয়েছে। তার ক্ষমতা কেড়ে নেয়া হচ্ছে। প্রশ্নবিদ্ধ সুপারিশ এটি।

‘এ ধরনের সুপারিশ স্বাধীন বাংলাদেশে একেবারেই অগ্রহণযোগ্য, সংবিধান পরিপন্থি, নারীর মানবাধিকার পরিপন্থি ও নারীর ক্ষমতায়ন পরিপন্থি। এ ধরনের সুপারিশ একজন নারীর জন্য যেমন অবমাননাকর, ঠিক একইভাবে একজন মুক্তিযোদ্ধার জন্যেও অপমানজনক।’

ইউএনও নাজমুন নাহার দীর্ঘদিন মাঠ প্রশাসনে কাজ করছেন। প্রয়াত অনেক বীর মুক্তিযোদ্ধার গার্ড অফ অনারে তিনি উপস্থিত থেকেছেন।

তিনি বলেন, ‘মাঠপর্যায়ে গার্ড অফ অনার দিতে এখন পর্যন্ত কোনো সমস্যার সম্মুখীন হইনি। মাঠের মানুষগুলো সহজ সরল। এদের (মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয়-সম্পর্কিত সংসদীয় কমিটি) চেয়ে মাঠপর্যায়ের মানুষগুলো ভালো বোঝে।’

ইউএনও নাজমুন নাহারের আশঙ্কা, এ ধরনের সুপারিশের পেছনে কোনো ধর্মীয় গোষ্ঠীর উসকানি থাকতে পারে।

তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশে একটি শ্রেণি আছে, যারা নারীর ক্ষমতায়ন পছন্দ করে না। তারা নারীকে ঘরবন্দি করে রাখতে চায়। ওই শ্রেণির লোকজনের রোষানল থেকে বাঁচতে মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয়-সম্পর্কিত সংসদীয় কমিটি এই সুপারিশ করতে পারে।’

নোয়াখালীর সুবর্ণচরে ইউএনও চৈতী সর্ববিদ্যা পাল্টা প্রশ্ন তুলে নিউজবাংলাকে বলেন, ‘সরকারের নির্দেশনা বাস্তবায়নের ক্ষেত্রে কর্মকর্তা তো কর্মকর্তাই। এতে নারী-পুরুষের প্রশ্ন কেন আসবে?’

একই জেলার কবিরহাটের ইউএনও হিসেবে আছেন হাসিনা আক্তার। তিনি বলেন, ‘ইউএনও একটি প্রশাসনিক পদ, ধর্মীয় নয়।’


গার্ড অফ অনারে ‘নিষেধের’ সুপারিশ: ক্ষুব্ধ নারী ইউএনওরা
জামালপুরের বকশিগঞ্জ উপজেলায় গার্ড অফ অনারে ইউএনও মুনমুন জাহান লিজা

হাসিনা আক্তার নিউজবাংলাকে বলেন, ‘প্রয়াত বীর মুক্তিযোদ্ধাকে রাষ্ট্রীয়ভাবে সম্মান জানাতে জেন্ডার কোনো জটিল বিষয় নয়। এটাকে কেউ খাটো করলে তা নিতান্তই অগ্রহণযোগ্য। এটি (সংসদীয় কমিটির সুপারিশ) একান্তই কোনো মহলের ব্যক্তিগত মত। আমাদের রাষ্ট্রপ্রধান থেকে শুরু করে উচ্চপদস্থ অনেক কর্মকর্তাই নারী, সে ক্ষেত্রে বিষয়টাকে একপেশে করে দেখা উচিত নয়।’

আরও পড়ুন: ‘নারী কর্মকর্তা বাদের সুপারিশকারীদের ক্ষমা চাইতে হবে’

শেরপুরের নালিতাবাড়ীর ইউএনও হেলেনা পারভিনের প্রশ্ন, একজন নারী কর্মকর্তা যদি সব কাজ করতে পারেন, তাহলে গার্ড অফ অনার দিতে বাধা কোথায়?

তিনি নিউজবাংলাকে বলেন, ‘ইসলামের দৃষ্টিকোণের কথা যদি ওঠে, তাহলে অন্য ধর্মের পুরুষ অফিসাররাও তো গার্ড অফ অর্নার দিতে পারবেন না। কাজেই এ নিয়ে বিতর্কের কোনো সুযোগ আছে বলে আমি মনে করি না।’

একই জেলোর শ্রীবরদী উপজেলার ইউএনও নিলুফা আক্তার নিউজবাংলাকে বলেন, ‘নারীরা মুক্তিযুদ্ধে অনেক বড় অবদান রেখেছেন। তারা এখন গার্ড অফ অনার দিলে সমস্যা কোথায়? আমরা মাঠপর্যায়ে সব কাজই তো করছি। তাহলে গার্ড অফ অনার দিতে পারব না কেন? রাষ্ট্র আমাদের যে দায়িত্ব দেবে, সেটা আমরা অন্য সব পুরুষ অফিসারের মতোই পালন করতে পারব।’

সংসদীয় কমিটির সুপারিশের প্রতিবাদ জানিয়েছেন নাটোরের লালপুরের ভারপ্রাপ্ত ইউএনও শাম্মী আক্তার।

তিনি নিউজবাংলাকে বলেন, ‘সরকারিভাবে সব সময় নারী অধিকারের কথা বলা হচ্ছে। গার্ড অফ অনারে নারীর অংশগ্রহণে আপত্তি তোলা সরকারি নীতিমালার সঙ্গে সাংঘর্ষিক। যেখানে সব সময় নারী অধিকারের কথা বলা হচ্ছে, সেখানে রাষ্ট্রীয় সম্মাননায় অংশগ্রহণ করতে না দেয়ার সুপারিশ বেমামান।’

গার্ড অফ অনারে ‘নিষেধের’ সুপারিশ: ক্ষুব্ধ নারী ইউএনওরা

নাটোরের বাগাতিপাড়ার ইউএনও প্রিয়াংকা দেবী পাল বলেন, ‘বীর মুক্তিযোদ্ধার মৃত্যুর পর রাষ্ট্রীয়ভাবে সম্মান জানাতে গার্ড অফ অনার দেয়া হয়। এটা তো জানাজার অংশ নয়। গার্ড অফ অনারের অর্থ হলো সামরিক উপায়ে সম্মান জানানো। এটা ধর্মীয় কোনো বিষয় না। তাই নারী কর্মকর্তার অংশগ্রহণ নিয়ে আপত্তি তোলার কোনো কারণ দেখি না।’

জানাজা ও গার্ড অফ অনার এক নয় বলে মন্তব্য করেছেন মানিকগঞ্জ সদরের ইউএনও জেসমিন সুলতানাও।

তিনি নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আমি রাষ্ট্রের প্রতিনিধি হিসেবে গার্ড অফ অনার দিই। সেখানে কে নারী আর কে পুরুষ সেটা বিবেচ্য বিষয় না, বিষয়টি হলো মুক্তিযোদ্ধা। আমাদের সংবিধান অনুযায়ী কিন্তু কোনো নারী-পুরুষ পার্থক্য করা যাবে না, ধর্ম, বর্ণ, গোষ্ঠী দেখা যাবে না ,এটাও বলা আছে। সুতরাং আমি মনে করি, এটা সংবিধানবিরোধী কার্যকলাপ হবে।’

তিনি আরও বলেন, ‘আমাদের মহান জাতীয় সংসদ এটা প্রণয়ন করছে। নতুন করে এ ধরনের কিছু জাতীয় সংসদে পাস হবে না বলেই আমাদের বিশ্বাস। বর্তমান সরকার আমাদের নারী-পুরুষে ভেদাভেদ করবে না। কারণ আমরা আমাদের অবস্থান থেকে যথাযথ সম্মান প্রদর্শন করছি কি না, সেটা আলোচ্য বিষয়। আমাদের দেশে পুরুষের পাশাপাশি অনেক নারী মুক্তিযোদ্ধাও রয়েছে।’

প্রতিবেদন তৈরিতে সহযোগিতা করেছেন চট্টগ্রাম থেকে সিফায়াত উল্লাহ, মানিকগঞ্জ থেকে আজিজুল হাকিম, সাভার থেকে ইমতিয়াজ উল ইসলাম, নাটোর থেকে নাজমুল হাসান, নোয়াখালী থেকে মোহাম্মদ সোহেল, শেরপুর থেকে শাহরিয়ার শাকির ও জামালপুর থেকে সাইমুম সাব্বির শোভন।

আরও পড়ুন:
বাফুফের আর্থিক হিসেবে গড়মিল খুঁজে পেয়েছে ফিফা
দুর্নীতির দায়ে সওজের প্রকৌশলীর কারাদণ্ড
উত্তর ঢাকায় ৮০ লাখ টাকার রোড সুইপার ৬ কোটি টাকায়!
বেশি দামে জমি কিনে কম দামে বেচেন যিনি
সাংবাদিকদের এড়িয়ে গেল ইউজিসির তদন্ত দল

শেয়ার করুন

‘বিয়ের প্রলোভনে’ যৌন সম্পর্ক কি ধর্ষণ?

‘বিয়ের প্রলোভনে’ যৌন সম্পর্ক কি ধর্ষণ?

প্রতীকী ছবি

দেশের হাইকোর্ট একাধিক রায় দিয়েছে, যেখানে বলা হয়েছে ১৬ বছরের ঊর্ধ্বে কোনো নারীর সম্মতিতে তার সঙ্গে কারও যৌন সম্পর্ক হলে সেটিকে ধর্ষণ হিসেবে বিবেচনা করা যাবে না। এসব রায়ে আদালত ‘বিয়ের প্রলোভন’ এর অভিযোগকেও নাকচ করেছে।

প্রাপ্তবয়স্ক নারীর ক্ষেত্রে ‘বিয়ের প্রলোভনে ধর্ষণ’ এর মতো অভিযোগ বিভিন্ন সময়ে আলোচিত হলেও এ ধরনের ঘটনাকে অপরাধ হিসেবে গণ্য করা যায় কিনা, তা নিয়ে প্রশ্ন রয়েছে আইন বিশেষজ্ঞদের।

এমনকি দেশের হাইকোর্টও একাধিক রায় দিয়েছে, যেখানে বলা হয়েছে ১৬ বছরের ঊর্ধ্বে কোনো নারীর সম্মতিতে তার সঙ্গে কারও যৌন সম্পর্ক হলে সেটিকে ধর্ষণ হিসেবে বিবেচনা করা যাবে না। এসব রায়ে আদালত ‘বিয়ের প্রলোভন’ এর অভিযোগকেও খারিজ করেছে। আইনজীবীরা বলছেন, হাইকোর্টের ওই রায়ের বিরুদ্ধে কোনো আপিল না হওয়ায় আইনি দৃষ্টিকোণ থেকে আদেশগুলো কার্যকর রয়েছে।

পাশের দেশ ভারতের উচ্চ আদালতও বলেছে, কোনো নারী স্বেচ্ছায় দীর্ঘদিন ধরে কারো সঙ্গে শারীরিক সম্পর্ক বজায় রাখার পর ওই ব্যক্তির বিরুদ্ধে ‘বিয়ের প্রলোভন’ দেখিয়ে ধর্ষণের অভিযোগ আনতে পারবেন না।

আরও পড়ুন: ‘বিয়ের প্রলোভনে যৌন সম্পর্ক সব সময় ধর্ষণ নয়’

এমন প্রেক্ষাপটে আলোচিত এই বিষয়টি নিয়ে অনুসন্ধান চালিয়েছে নিউজবাংলা। এতে দেখা গেছে, দেশের উচ্চ আদালত এ বিষয়ে একাধিক রায় দিলেও সেটি তেমনভাবে সংবাদ মাধ্যমে গুরুত্ব পায়নি।

অনুসন্ধানে দেখা গেছে, বিষয়টি নিয়ে ৩০ বছর আগে ১৯৯১ সালে হাইকোর্ট বিভাগ লুকুছ মিয়া বনাম রাষ্ট্র মামলায় একটি পর্যবেক্ষণ দেয়।

‘বিয়ের প্রলোভনে’ যৌন সম্পর্ক কি ধর্ষণ?

বিচারপতি আব্দুল বারী সরকার ও বিচারপতি হাবিবুর রহমান খানের হাইকোর্ট বেঞ্চ লুকুছ মিয়ার বিরুদ্ধে বিয়ের প্রলোভনে ধর্ষণের অভিযোগ খারিজ করে বলে, ‘এটি অপরাধের মধ্যে পড়ে না। তার কারণ অভিযোগকারী নারী স্বেচ্ছায় যৌন সম্পর্কে অংশ নিয়েছেন। এর ফলে তার একটি সন্তানও হয়েছে। সব কিছু বিবেচনায় লুকুছ মিয়ার আপিল মঞ্জুর এবং অভিযোগ থেকে তাকে খালাস দেয়া হলো।’

মৌলভীবাজারের ছিকার আলীর ছেলে লুকুছ মিয়ার বিরুদ্ধে বিয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়ে ধর্ষণের অভিযোগটি দায়ের করেছিলেন এক নারী। এ মামলায় জেলা ও দায়রা জজ আদালত লুকুছকে ১৪ বছর সশ্রম কারাদণ্ড দেয়। তবে রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করেন লুকুছ মিয়া। ওই আপিল শুনানি নিয়ে হাইকোর্ট তাকে খালাস দেয়।

এছাড়া ২০০৭ সালে মনোয়ার মল্লিক বনাম রাষ্ট্র মামলায় বিচারপতি ছিদ্দিকুর রহমান মিয়া ও বিচারপতি রেজাউল হকের হাইকোর্ট বেঞ্চ একটি রায় দিয়েছিল। এতে বলা হয়, ‘অভিযোগকারী নারী বিয়ের প্রতিশ্রুতিতে স্বেচ্ছায় যৌন মিলনে সম্মত হয়েছেন। তবে এ কারণে আসামিকে ধর্ষণের অপরাধে দোষী সাব্যস্ত করা যায় না।’

আদালত রায়ে আরও বলে, ‘আমরা কোনো সাক্ষ্যপ্রমাণ পাইনি, যার ভিত্তিতে ট্রাইব্যুনাল তাকে (মনোয়ার) সাজা দিতে পারে। তাই ট্রাইব্যুনালের রায় বহাল রাখা আমাদের জন্য কঠিন।’

এছাড়া, ২০১৬ সালে নাজিম উদ্দিন বনাম রাষ্ট্র মামলায় বিচারপতি মো. এমদাদুল হক ও বিচারপতি আশীষ রঞ্জন দাসের হাইকোর্ট বেঞ্চও একই ধরনের রায় দেয়।

রায়ে হাইকোর্ট বলে, ‘সার্বিক পরিস্থিতি এবং সাক্ষ্য প্রমাণে এটা প্রমাণিত হয় না যে, এখানে এক পক্ষ দোষী। বরং এ কাজে দুই জনের সমান অংশগ্রহণ রয়েছে। সব কিছু বিবেচনায় দেখা যায়, ধর্ষণের জন্য শুধু পুরুষ সঙ্গীকে দায়ী করা যায় না।’

‘বিয়ের প্রলোভনে’ যৌন সম্পর্ক কি ধর্ষণ?

কী আছে আইনে

আইন বিশেষজ্ঞরা বলছেন, বাংলাদেশের বিদ্যমান আইনেও প্রাপ্তবয়স্ক নারীর ক্ষেত্রে ‘বিয়ের প্রলোভনে ধর্ষণ’ এর মতো অভিযোগ মিমাংসা করায় জটিলতা রয়েছে।

নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন ২০০০ এর ধর্ষণ, ধর্ষণজনিত কারণে মৃত্যু ইত্যাদির শাস্তি অংশের ৯ (১) ধারায় বলা হয়েছে, ‘যদি কোনো পুরুষ কোনো নারী বা শিশুকে ধর্ষণ করেন, তাহা হইলে তিনি [মৃত্যুদণ্ডে বা যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ডে] দণ্ডনীয় হইবেন এবং ইহার অতিরিক্ত অর্থদণ্ডেও দণ্ডনীয় হইবেন।’

এর ব্যাখ্যায় বলা হয়েছে, ‘যদি কোনো পুরুষ বিবাহ বন্ধন ব্যতীত [ষোল বৎসরের] অধিক বয়সের কোনো নারীর সহিত তাহার সম্মতি ব্যতিরেকে বা ভীতি প্রদর্শন বা প্রতারণামূলকভাবে তাহার সম্মতি আদায় করিয়া, অথবা [ষোল বৎসরের] কম বয়সের কোনো নারীর সহিত তাহার সম্মতিসহ বা সম্মতি ব্যতিরেকে যৌন সঙ্গম করেন, তাহা হইলে তিনি উক্ত নারীকে ধর্ষণ করিয়াছেন বলিয়া গণ্য হইবেন।’

নারী ও শিশু নির্যাতন দমন (সংশোধন) আইন ২০২০ এও এই ধারাটি রয়েছে।

আইন বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এই ধারার ব্যাখ্যায় প্রাপ্ত বয়স্কের ক্ষেত্রে ‘প্রতারণামূলকভাবে সম্মতি’ আদায়ের বিষয়টিকে ‘ধর্ষণ’ বলে গণ্য করার কথা থাকলেও আদালতে ‘বিয়ের প্রলোভনকে’ প্রতারণা হিসেবে প্রমাণ করা বেশ কঠিন।

‘বিয়ের প্রলোভনে’ যৌন সম্পর্ক কি ধর্ষণ?

হাইকোর্টের রায় নিয়ে আইনজীবীদের অভিমত

সুপ্রিম কোর্টের জ্যেষ্ঠ আইনজীবী মনসুরুল হক চৌধুরী নিউজবাংলাকে বলেন, ‘হাইকোর্ট যদি এ ধরনের রায় দিয়ে থাকে, তাহলে সেটি সবার ক্ষেত্রেই কার্যকর থাকবে। নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে বলা আছে, প্রতারণা করে ইচ্ছার বিরুদ্ধে জোরপূর্বক যৌন মিলন করলে সেটি ধর্ষণ হিসেবে বিবেচিত হবে। তবে দুইজন যদি প্রাপ্তবয়স্ক হয়, সম্মতিতে মিলন হয়, তাহলে সেটি ধর্ষণ হবে না।’

সুপ্রিমকোর্টের আইনজীবী, মানবাধিকার কর্মী অ্যাডভোকেট ফাওজিয়া করিম ফিরোজ নিউজবাংলকে বলেন, ‘আদালত ঠিক রায়ই দিয়েছে। এ ধরনের অভিযোগে মামলা হলে সেটি ধর্ষণের মামলা হওয়া উচিত না।’

তিনি বলেন, ‘আমি আইনজীবী হিসেবে দেখেছি অনেক ক্ষেত্রে দুই পক্ষের সম্মতিতেই সম্পর্ক হয়ে থাকে। পরে কোনো এক পর্যায়ে দেখে যে সুবিধা হচ্ছে না, তখনই মামলা মোকদ্দমা করা হয়। ধরেন কোনো পুরুষ সম্পর্কে জড়ানোর পরে যদি সে তার পছন্দসই অন্য কাউকে বিয়ে করতে চায়, কিংবা তার সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করে, তখনই নারী তার বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগে মামলা করে দেন। এক্ষেত্রে আমার অভিমত হলো, এখানে ধর্ষণের অভিযোগে নয়, প্রতারণা বা প্রতিশ্রুতি ভঙ্গের অভিযোগে মামলা হওয়া উচিত।’

এ অভিমতের সঙ্গে একমত পোষণ করছেন ব্যারিস্টার রাশনা ইমাম। তবে তিনি নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আইনে ১৬ বছর উল্লেখ আছে, এ ক্ষেত্রে এটি ১৮ বছর করা উচিত ছিল।’

রাশনা ইমাম বলেন, ‘এমনিতেই ধর্ষণের মামলা অনেকভাবে টেকে না। তার মধ্যে প্রথমত অনেক নারী অভিযোগ দায়ের করতে চান না। দ্বিতীয়ত, থানায় গেলেও দেখা যায় ভিকটিম উল্টো হয়রানি শিকার হন। তৃতীয়ত সাক্ষ্য প্রমাণের অভাবে অনেক সময় আসামি খালাস পেয়ে যায়। এসব বিবেচনায় নিয়ে পুরো আইনটিই সংশোধন ও সময়োপযোগী করা উচিত।’

যা বলেছে ভারতের আদালত

ভারতের দিল্লি হাইকোর্ট গত বছর একটি মামলার রায়ের পর্যবেক্ষণে বলে, কোনো নারী স্বেচ্ছায় দীর্ঘদিন ধরে কারো সঙ্গে শারীরিক সম্পর্ক বজায় রাখার পর ওই ব্যক্তির বিরুদ্ধে তিনি ‘বিয়ের প্রলোভন’ দেখিয়ে ধর্ষণের অভিযোগ আনতে পারবেন না।

‘বিয়ের প্রলোভনে’ যৌন সম্পর্ক কি ধর্ষণ?
ভারতের সুপ্রিম কোর্ট

মামলায় অভিযুক্ত ব্যক্তিকে খালাস দিয়ে আদালত বলে, ‘বিয়ের প্রতিশ্রুতিকে কোনোভাবেই দীর্ঘায়িত ও একান্ত যৌন সম্পর্কের প্ররোচনা হিসেবে বিবেচনা করা যেতে পারে না।’

পর্যবেক্ষণে বিচারপতি বিভু বাখ্রু বলেন, ‘অভিযোগকারী নারী যদি কিছু সময়ের জন্য নিজেকে অভিযুক্তের যৌন কামনার শিকার বলে মনে করেন, সেক্ষেত্রে বিষয়টিকে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে প্ররোচিত করার মতো অভিযোগ হিসেবে গ্রহণ করা যেতে পারে।

‘এ ধরনের সুনির্দিষ্ট ক্ষেত্রে একপক্ষ মানসিকভাবে রাজি না থাকার পরেও অন্য পক্ষের বিয়ের প্রতিশ্রুতির ভিত্তিতে যৌন সম্পর্ক তৈরিতে সম্মতি দিতে পারে।’

আদালত বলে, স্বল্প সময়ের এই ‘সম্মতি’র ক্ষেত্রে বিয়ের প্রলোভনের মতো বিষয়টি প্রযোজ্য হতে পারে। এ ক্ষেত্রে কোনো একটি পক্ষ অপর পক্ষের বিরুদ্ধে উদ্দেশ্যমূলক সম্মতি আদায়ের অভিযোগ তুলতে পারবে এবং ভারতীয় ফৌজদারি দণ্ডবিধির ৩৭৫ ধারায় ধর্ষণের মামলা করা যাবে।

“তবে একটি পক্ষ অপরপক্ষের সঙ্গে ধারাবাহিক সম্পর্কের মধ্যে থাকলে এবং দীর্ঘদিন ধরে তাদের শারীরিক সম্পর্ক বজায় থাকলে, বিষয়টিকে বিয়ের প্রলোভনের কারণে ‘অনিচ্ছুক শারীরিক সম্পর্ক’ হিসেবে বিবেচনা করা যায় না।”

এর আগে ২০১৯ সালে ভারতের সুপ্রিম কোর্ট একটি রায়ে বলেছিল, শারীরিক সম্পর্কের পর বিয়ের প্রতিশ্রুতি না রাখার প্রতিটি ঘটনাকেই ‘বিয়ের প্রলোভন’ দেখিয়ে ধর্ষণ হিসেবে বিবেচনা করা যায় না।

সবশেষ গত মার্চে ভারতের সুপ্রিম কোর্ট একটি রায়ে বলে, একসঙ্গে থাকা নারী-পুরুষের ক্ষেত্রে পুরুষ পরে বিয়ের প্রতিশ্রুতি না রাখলে ধর্ষণের অভিযোগ আনা যাবে না। আদালত বলেছে, ‘বিয়ের মিথ্যা প্রতিশ্রুতি দেয়া ঠিক নয়। এমনকি একজন নারীর ক্ষেত্রেও বিয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়ে পরে সম্পর্ক ভেঙে দেয়া উচিত নয়। তবে এর মানে এই নয় যে, দীর্ঘদিনের সম্পর্কের ক্ষেত্রে যৌনমিলনকে ধর্ষণ হিসেবে অভিহিত করা যাবে।’

আরও পড়ুন:
বাফুফের আর্থিক হিসেবে গড়মিল খুঁজে পেয়েছে ফিফা
দুর্নীতির দায়ে সওজের প্রকৌশলীর কারাদণ্ড
উত্তর ঢাকায় ৮০ লাখ টাকার রোড সুইপার ৬ কোটি টাকায়!
বেশি দামে জমি কিনে কম দামে বেচেন যিনি
সাংবাদিকদের এড়িয়ে গেল ইউজিসির তদন্ত দল

শেয়ার করুন