পাঁচ বছরে পদ্মায় সবচেয়ে কম পানি

হার্ডিঞ্জ ব্রিজ পয়েন্টে পদ্মার পানি প্রবাহ। ছবি: নিউজবাংলা

পাঁচ বছরে পদ্মায় সবচেয়ে কম পানি

পদ্মায় পানি কমে যাওয়ায় এর প্রধান শাখা নদী গড়াই শুকিয়ে গেছে। কুষ্টিয়ার খোকসায় মানুষ হেঁটে পার হচ্ছেন এই নদী। অন্যদিকে দেশের বৃহত্তম সেচ প্রকল্প গঙ্গা-কপোতাক্ষ (জিকে) প্রকল্পের পাম্প বন্ধ রাখায় সংকটে পড়েছেন হাজারো কৃষক।

পাঁচ বছরের মধ্যে এখন সবচেয়ে কম পানি বইছে পদ্মা নদীতে। যৌথ নদী কমিশন ও পানি উন্নয়ন বোর্ডের তথ্য অনুযায়ী, মার্চের শেষের দিকে কুষ্টিয়ার হার্ডিঞ্জ ব্রিজ পয়েন্টে মাত্র ২৩ হাজার কিউসেকের মতো পানি প্রবাহ রয়েছে।

যৌথ নদী কমিশনের হিসাবে, এর আগে ২০১৬ সালে মার্চের শেষে হার্ডিঞ্জ ব্রিজ পয়েন্টে পানি প্রবাহ ছিল ২১ হাজার ৭১০ কিউসেক। এর পরে এখানে পানির প্রবাহ কখনও ৩০ হাজার কিউসেকের নিচে নামেনি।

পদ্মায় পানি কমে যাওয়ায় এর প্রধান শাখা নদী গড়াই শুকিয়ে গেছে। কুষ্টিয়ার খোকসায় মানুষ হেঁটে পার হচ্ছেন এই নদী। অন্যদিকে দেশের বৃহত্তম সেচ প্রকল্প গঙ্গা-কপোতাক্ষ (জিকে) প্রকল্পের পাম্প বন্ধ রাখায় সংকটে পড়েছেন হাজারো কৃষক।

পানি উন্নয়ন বোর্ডের প্রকৌশলীরা অবশ্য বলছেন, ভারতের সঙ্গে পানি চুক্তি অনুযায়ী বাংলাদেশ ১ এপ্রিল থেকে ১০ দিন ৩৫ হাজার কিউসেক করে পানি পাবে। তখন সংকট কেটে যাবে।

১৯৯৬ সালে সই হওয়া গঙ্গার পানি বণ্টন চুক্তি অনুযায়ী, বাংলাদেশ ১১ থেকে ২০ মার্চ, ১ থেকে ১০ এপ্রিল এবং ২১ থেকে ৩০ এপ্রিল গ্যারান্টিযুক্ত ৩৫ হাজার কিউসেক করে পানি পাবে। বাকি সময়ে ভারত পাবে গ্যারান্টিযুক্ত ৩৫ হাজার কিউসেক করে পানি। সে অনুযায়ী, এখন অর্থাৎ ২১ থেকে ৩১ মার্চ চলছে ভারতের প্রাপ্যতার সময়। বাংলাদেশ এখন পাচ্ছে অবশিষ্ট পানি।

যৌথ নদী কমিশনের বিজ্ঞপ্তি অনুযায়ী, আগের ১০ দিনে (১১-২০ মার্চ) যখন বাংলাদেশ গ্যারান্টিযুক্ত ৩৫ হাজার কিউসেক করে পানি পেয়েছে, তখন ভারত পেয়েছিল অবশিষ্ট ২৪ হাজার ৫২২ কিউসেক।

গঙ্গা নদী পদ্মা নামে বাংলাদেশে প্রবেশের পর কুষ্টিয়ার হার্ডিঞ্জ ব্রিজ পয়েন্টে পানির প্রবাহ পরিমাপ করা হয়। এখানে যৌথ নদী কমিশন ও পানি উন্নয়ন বোর্ড পানির হিসাব রাখে।

হার্ডিঞ্জ ব্রিজ পয়েন্টে গিয়ে মঙ্গলবার দুপুরে পদ্মায় বালুচর জাগতে দেখা গেছে। হার্ডিঞ্জ ব্রিজের মোট ১৬টি গার্ডারের মধ্যে ১০টি আছে পানির মধ্যে। মাটিতে থাকা দুই পাশের দুটি বাদ দিলে বাকি চারটি গার্ডারের গোড়ায় বালুচর জমেছে।

হার্ডিঞ্জ ব্রিজ পয়েন্টে কমছে পানি প্রবাহ

যৌথ নদী কমিশনের হিসাবে, এ বছর জানুয়ারি থেকেই ধারাবাহিকভাবে পানির প্রবাহ কমছে। ১০ দিন করে ভাগ করে প্রতি মাসে তিন ধাপে পানি প্রবাহের হিসাব দেয় তারা। তাদের তথ্য অনুযায়ী, জানুয়ারির প্রথম ধাপে হার্ডিঞ্জ ব্রিজ পয়েন্টে পানি প্রবাহ ছিল ৬৯ হাজার কিউসেকের ওপরে, এর পরের ১০ দিন ছিল ৫৫ হাজারের ওপরে, শেষের ১১ দিনে তা নেমে আসে সাড়ে ৫২ হাজারে। ফেব্রুয়ারির শুরুতে ৫০ হাজার কিউসেক থাকলেও শেষ ভাগে ছিল ৩৯ হাজার কিউসেক পানি। আর মার্চের প্রথম ১০ দিনে এখানে পানি ছিল ৩৬ হাজার ৯৭৮, মাঝের ১০ দিনে পাওয়া গেছে ৩৬ হাজার ৩৯৩ কিউসেক।

এ সময় ফারাক্কা পয়েন্টে গঙ্গার মোট পানি ছিল ৫৯ হাজার ৫২২ কিউসেক। আগামী ১ এপ্রিল ২১ থেকে ৩১ মার্চের পানির প্রাপ্যতার তথ্য প্রকাশ করা হবে বলে জানিয়েছেন যৌথ নদী কমিশনের নির্বাহী প্রকৌশলী একেএম সাইফুদ্দিন।

তবে, গঙ্গা-কপোতাক্ষ (জিকে) সেচ প্রকল্পের প্রধান প্রকৌশলী আব্দুল হেকিম যৌথ নদী কমিশনের সূত্র উল্লেখ করে জানান, মার্চের শেষে এসে পদ্মায় পানি পাওয়া যাচ্ছে মাত্র ২৩ হাজার কিউসেকের মতো। যে কারণে পানি ৪.১ মিটার রিডিউসড লেভেলে (আরএল) নেমে আসায় গত ২৬ মার্চ সন্ধ্যার পর থেকে বন্ধ রাখতে হচ্ছে জিকে সেচ প্রকল্পের দুটি পাম্পই।

১৯৯৬ সাল থেকে ২৬ বছরের যৌথ নদী কমিশনের তথ্য পর্যালোচনা করে দেখা গেছে, ২১-৩১ মার্চ সবচেয়ে কম পানি থাকে গঙ্গায়। আর পানি বণ্টন চুক্তি অনুযায়ী এই সময়টিই গ্যারান্টিযুক্ত ৩৫ হাজার কিউসেক পানির প্রাপ্যতা রয়েছে ভারতের ভাগে। তাছাড়া মার্চ মাস ৩১ দিনে হওয়ায় সবচেয়ে শুষ্ক মৌসুমে ১০ দিনের জায়গায় ১১ দিন এই ভাগ নিচ্ছে ভারত।

গত বছরের মার্চ মাসের পানির হিসাবের সঙ্গে এবার তুলনা করলেও দেখা যায়, গঙ্গায় পানিপ্রবাহ অনেক কমেছে। ২০২০ সালের মার্চের প্রথম ১০ দিনে ফারাক্কা পয়েন্টে পানি ছিল ৯৪ হাজার ৯৯০ কিউসেক। এবার সেখানে পাওয়া গেছে মাত্র ৬২ হাজার ৪০২ কিউসেক। আর পরের ১০ দিনে ২০২০ সালের পাওয়া যায় ৯৫ হাজার ৯৭০ কিউসেক। এবার সেখানে পাওয়া গেছে মাত্র ৫৯ হাজার ৫২২ কিউসেক। আর ২০২০ সালে মার্চের শেষ ১১ দিনে ফারাক্কায় পানি পাওয়া গেছে ১ লাখ ১১ হাজার ৬১৯ কিউসেক। প্রকৌশলীদের দেয়া হিসাবে সেখানে এবার পানি মিলতে পারে ৫৮/৫৯ হাজার কিউসেকের মতো।

ফারাক্কা পয়েন্টের আগে নানা প্রকল্পের মাধ্যমে ভারত গঙ্গার পানি প্রত্যাহার করে নিচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন বাংলাদেশ রিভার অ্যান্ড ডেল্টা রিসার্চ সেন্টারের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ এজাজ। তিনি নিউজবাংলাকে বলেন, ‘ভারত উত্তরখাণ্ড থেকে শুরু করে ফারাক্কা পর্যন্ত অন্তত ১ হাজারটি সেচ প্রকল্প এবং ব্যারেজ নির্মাণ করেছে। সমালোচিত ইন্টার রিভার লিংকিং প্রকল্পের মাধ্যমে এসব প্রকল্প ও ব্যারেজের জন্য আগেই গঙ্গার পানি প্রত্যাহার করা হচ্ছে। তাই ফারাক্কা পয়েন্টে কত পানি পাচ্ছি তা নিয়ে আমাদের হৈচৈ না করে পুরো গঙ্গা বেসিন ধরে হিসাব নিতে হবে।’

পানি বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক ড. আনোয়ারুল করীম নিউজবাংলাকে বলেন, ‘দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলকে মরুকরণ থেকে বাঁচাতে হলে পদ্মায় পানি লাগবে। কুষ্টিয়ার ভেড়ামারায় পদ্মার পানি ধরে রাখতে গঙ্গা ব্যারেজ নির্মাণের যে পরিকল্পনা ছিল সেটি বাস্তবায়ন করতে হবে। বর্ষা মৌসুমে ব্যারেজে পানি ধরে রেখে শুষ্ক মৌসুমে সহজেই ব্যবহার করা যেতে পারে।’

ধুঁকছে গড়াই

দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ নদী কুষ্টিয়ার গড়াই। এটি পদ্মার প্রধান শাখা নদী। কুষ্টিয়া, মাগুরা, রাজবাড়ী, ঝিনাইদহ, ফরিদপুর, যশোর ও খুলনা হয়ে বিভিন্ন নামে এই নদী সুন্দরবনে গিয়ে সমুদ্রে মিশেছে।

পানি উন্নয়ন বোর্ডের দাবি, পরিকল্পিত খননে এবার নদীতে পানি প্রবাহ বেশি আছে। আর এ কারণে সুন্দরবনসহ সমুদ্র উপকূলে কমছে লবণাক্ততার মাত্রা। এ বছর শুষ্ক মৌসুমেও কুষ্টিয়া শহরের কাছে গড়াইয়ে কিছুটা পানিপ্রবাহ আছে।

কুষ্টিয়া পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী কেএম জহুরুল হক জানান, নাব্যতা ধরে রাখতে টানা খনন চলছে গড়াইয়ে। সাতটি ড্রেজার দিয়ে উৎস মুখ কুষ্টিয়ার মিরপুর উপজেলার তালবাড়িয়া থেকে ২০ কিলোমিটার খনন হবে কুমারখালী পর্যন্ত।

খোকসায় নদী পার হওয়া যাচ্ছে হেটে

তবে কুমারখালীর পরেই খোকসায় গিয়ে দেখা গেছে গড়াই একেবারে শুকিয়ে গেছে। কোনোমতে বইছে ক্ষীণ পানির ধারা। স্থানীয় সাংবাদিক হুমায়ুন কবির বলেন, ‘মানুষ বাঁশের চরাট ফেলে তার ওপর দিয়ে হেঁটে নদী পার হচ্ছে। পুরো নদী প্রস্থে প্রায় এক কিলোমিটার ধু ধু বালুচর জমেছে।’

এ বিষয়ে কুষ্টিয়া পানি উন্নয়ন বোর্ডের ড্রেজিং বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী তাজমীর হোসেনকে প্রশ্ন করা হলে তিনি নিউজবাংলাকে বলেন, ‘মূল নদী পদ্মায় পানি কমে যাওয়ায় শাখা নদী গড়াইয়েও পানি কমেছে। তবে ১ এপ্রিল থেকে ৩৫ হাজার কিউসেক পানি পেলে অবস্থার উন্নতি হবে।’

বেহাল জিকে সেচ প্রকল্প

পদ্মা নদীতে পানি সরবরাহ কমে যাওয়ায় দেশের বৃহত্তম সেচ প্রকল্প গঙ্গা-কপোতাক্ষ (জিকে) সেচ প্রকল্পের দুটি পাম্প মেশিনই বন্ধ রাখতে হচ্ছে। গত ২৬ মার্চ সন্ধ্যার পর থেকে পাম্প দুটির পানি সরবরাহ শূন্যে নিয়ে আসা হয় বলে জানান পাম্প হাউসের নির্বাহী প্রকৌশলী মিজানুর রহমান।

পাম্প বন্ধ রাখায় চরম সংকটে পড়েছেন কুষ্টিয়া, চুয়াডাঙ্গা, মাগুরা ও ঝিনাইদহ জেলার কৃষকেরা। অনেকেই শ্যালো পাম্প দিয়ে ভূগর্ভ থেকে পানি তুলে সেচ দিচ্ছেন।

ঝিনাইদহের শৈলকূপা উপজেলার আশুরহাটের কৃষক আব্দুর রাজ্জাক নিউজবাংলাকে বলেন, ‘এই এলাকায় জিকে সরবরাহ আছে, কিন্তু ঠিকমতো পানি আসে না। তাই কৃষকরা আগে থেকেই বিকল্প ব্যবস্থা হিসেবে বোরিং করে পাম্প মেশিন বসিয়ে নিয়েছে।’

কুষ্টিয়া সদরের সোনাইডাঙ্গা গ্রামের মোহাম্মদ আলী বলেন, ‘দুই দিন আগে থেকে পানি আসছে না। আমরা ভেবেছিলাম কোনো গেট আটকে রাখায় পানি পাচ্ছি না। মাঠে সবারই বোরো ধান রয়েছে। সাড়ে তিন মাসের এই ধানের কেবল দুই মাস হয়েছে। আরও অন্তত ২০ দিন সেচ দিতে হবে।’

কুমারখালী উপজেলার পাহাড়পুরের কৃষক মো. দেলোয়ার নিউজবাংলাকে বলেন, ‘এখন পাম্প বন্ধ করে দেয়া তো গাছে তুলে মই টান দেয়ার মতো। আমাদের এই পেঁয়াজ এবং ভুট্টার এখন কী হবে! এ ছাড়া সামনে পাট এবং আউশ ধানের বীজতলা তৈরি করতে হবে।’

সেচ প্রকল্পের পানি না পেয়ে তোলা হচ্ছে ভূগর্ভ থেকে

ঝিনাইদহ জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপপরিচালক মো. আজগর আলী বলেন, ‘জেলার কিছু কিছু এলাকায় জিকে খালের পানি সরবরাহ ব্যবস্থা রয়েছে। সেসব এলাকার কৃষক বেকায়দায় পড়েছেন।’

কুষ্টিয়া জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপপরিচালক শ্যামল কুমার বিশ্বাস নিউজবাংলাকে বলেন, ‘জিকের সেচসুবিধা বন্ধ থাকলে কৃষকের অনেক ক্ষতি হবে। বোরো চাষে এই সময়ে সেচ দেয়া খুব গুরুত্বপূর্ণ। সেচ না দিলে ফলনে প্রভাব পড়বে।’

জিকে প্রকল্পের আওতায় বোরো মৌসুমে এবার কুষ্টিয়া, চুয়াডাঙ্গা, মাগুরা ও ঝিনাইদহ জেলায় ১৯৪ কিলোমিটার প্রধান খালের মাধ্যমে প্রায় ১৫ হাজার হেক্টর জমিতে সেচসুবিধা দেয়ার লক্ষ্য রয়েছে।

গঙ্গা-কপোতাক্ষ (জিকে) সেচ প্রকল্পের প্রধান প্রকৌশলী আব্দুল হেকিম বলেন, ‘নদীতে পানি বাড়লেই আবার কৃষকদের সেচসুবিধা দেয়া যাবে। ১ এপ্রিল আবার পাম্প চালু হতে পারে।’

আরও পড়ুন:
গঙ্গা ব্যারাজ প্রকল্পে যুক্ত হচ্ছে ভারত: সচিব

শেয়ার করুন

মন্তব্য

করোনায় এবারও বৈশাখী ব্যবসায় সর্বনাশ

করোনায় এবারও বৈশাখী ব্যবসায় সর্বনাশ

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ বৃদ্ধির মধ্যে লকডাউনসহ কঠোর পদক্ষেপে ধস নেমেছে পহেলা বৈশাখকে সামনে রেখে বেচাকেনায়। ছবি: পিয়াস বিশ্বাস

আর্থিক লেনদেনের দিক থেকে রোজার ঈদের পরই বড় উৎসব পয়লা বৈশাখ। পোশাক থেকে শুরু করে সব মিলিয়ে এই উৎসব ঘিরে বাণিজ্যের পরিমাণ প্রায় ৮ থেকে ১০ হাজার কোটি টাকার। কিন্তু গত বছরের মতো এবারও ব্যবসায় দেখা যাচ্ছে ভাটা।

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে আনার লকডাউনে পড়ে গত বছর নববর্ষের বেচা মাটি হয়েছিল ব্যবসায়ীদের। বছর ঘুরে আবার যখন পয়লা বৈশাখ দরজায়, তখন দেশজুড়ে মহমারির দ্বিতীয় ঢেউ। আবারও লকডাউন।

ঢাকাসহ সারা দেশের বৈশাখী মেলা বন্ধ থাকবে। বন্ধ থাকবে রমনা বটমূলের বর্ষবরণ। অনলাইনে বা ভার্চুয়াল বর্ষবরণ হতে পারে। তাতে কেনাকাটা কীভাবে হবে?

বর্ষবরণের উৎসব ঘিরে দেশি পোশাকের বাড়তি চাহিদা সৃষ্টি হয়। তা ছাড়া মেলার আগে-পরে ফুল থেকে শুরু করে মাটির গয়না, গৃহসামগ্রী, খেলনা, মিষ্টিসহ দেশি খাবারের ধুম পড়ে।

গ্রামগঞ্জে ঘটা করে আয়োজন হয় বৈশাখী মেলার, দোকানে দোকানে হালখাতার।

লকডাউনে উৎসব বন্ধ হওয়ায় বৈশাখের বাণিজ্যে সর্বনাশ দেখছেন ব্যবসায়ীরা।

দুই বছর আগেও চৈত্রের শেষ সপ্তাহে দেশীয় পোশাকের দোকানে ছিল উপচে পড়া ভিড়। বিপণিবিতানগুলো ঘুরে নতুন ডিজাইনের পোশাক কিনেছেন উৎসবপ্রিয় মানুষ।

ক্রেতার এ ঘোরাঘুরিতে মুড়িমুড়কি, আইসক্রিম ও খাবারের দোকানেও বাড়তি আয়ের জোগান দিত। কিন্তু করোনার প্রভাবে গত বছর থেকে বদলে গেছে সেই চিত্র।

বৈশাখী অর্থনীতির আকার

আর্থিক লেনদেনের দিক দিয়ে পয়লা বৈশাখকে রোজার ঈদের পরই বড় উৎসব বলে মনে করেন বিশেষজ্ঞরা। তবে এ উৎসব ঘিরে বাণিজ্যের আকার নিয়ে নির্দিষ্ট কোনো গবেষণা বা জরিপের হিসাব নেই।

পোশাক থেকে শুরু করে সব মিলিয়ে বৈশাখী উৎসবকেন্দ্রিক মৌসুমি বাণিজ্যের পরিমাণ প্রায় ৮ থেকে ১০ হাজার কোটি টাকা হতে পারে বলে মনে করে বাংলাদশে দোকান মালিক সমিতি। কেউ কেউ বৈশাখী অর্থনীতির আকার সব খাত মিলিয়ে ২০ হাজার কোটি টাকাও মনে করেন।

ফ্যাশন এন্টারপ্রেনারস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ মনে করে, এ সময় শুধু পোশাকই বিক্রি হয় প্রায় ৫ হাজার কোটি টাকার। তবে এর আকার যাই হোক না কেন, পরপর দুই বছর এ বাণিজ্য নেমেছে তলানিতে। মাথায় হাত পড়েছে লাখ লাখ ক্ষুদ্র ও কুটিরশিল্প উদ্যোক্তার।

গেল বছরের ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে এ বছরও ভালোই প্রস্তুতি ছিল তাদের। কিন্তু গেলবারের একই সময়ে লকডাউনে অভিজাত শপিং মল থেকে ফুটপাতের সব দোকান বন্ধ থাকায় লাভের আশা লোকসানের নিরাশায় পরিণত হয়েছে।

বাংলাদেশ দোকান মালিক সমিতির সভাপতি হেলাল উদ্দিন নিউজবাংলাকে বলেন, বৈশাখী উৎসব মূলত দেশি উদ্যোক্তাকেন্দ্রিক। পোশাক থেকে শুরু করে সব পণ্যই দেশে উৎপন্ন হয়। কিন্তু গত বছরের লকডাউনের জেরে দেশীয় ফ্যাশনের দোকানি থেকে শুরু করে তাঁতি, কুমার, কুটিরশিল্প ব্যবসায়ীরা পুঁজি খুইয়েছেন।

দেশি ফ্যাশন হাউজগুলোর বড় আয়োজন থাকে বৈশাখ ঘিরে। কিন্তু তাদের এবারের ঘুরে দাঁড়ানোর চেষ্টাও ব্যর্থ হচ্ছে। এ ব্যবসায় সামনের দিনে কী হয়, তা নিয়ে আশঙ্কায় সময় কাটছে উদ্যোক্তাদের।

দেশব্যাপী এই সংগঠনের ২৫ লাখ সদস্য আছেন। কম-বেশি সবাই ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। কিন্তু তাদের ঋণ বা প্রণোদনার কোনো ব্যবস্থা গতবারও ছিল না। কখনোই থাকে না। করোনায় সবকিছু সচল থাকলেও ছোট ব্যবসায়ীদের দোকান ও শপিং মল বন্ধ ছিল। এখন তা বৈশাখের আগের দিন পর্যন্ত খুলে দেয়া হয়েছে। তবে কতটুকু কী হবে তা নিয়ে অনিশ্চয়তা রয়েছে।

ফ্যাশন হাউজ সারা লাইফ স্টাইলের সহকারী ব্যবস্থাপক শেখ রাহাত অয়ন নিউজবাংলাকে বলেন, ‘উৎসবভেদে বিভিন্ন ধরনের পোশাক তৈরি করা হয়। গত বছর তো কীভাবে কাটল তা বলা যাবে না। এবার বাড়তি বিনিয়োগ ও নতুন ডিজাইন নিয়ে ফিরে আসার একটা চেষ্টা ছিল। কিন্তু তাও হচ্ছে না।

‘আবার সারার একটা সুনাম আছে। এক বছরের পোশাক পরের বছর ব্যবহারও করা যায় না। কারণ প্রতিবছরই ক্রেতার ধরন ও পছন্দ পরিবর্তন হয়। পোশাকের ডিজাইনেও নতুনত্ব আসে। তাই বিকল্প হিসেবে অনলাইন বিক্রি শক্তিশালী করার ওপর জোর দেয়া হচ্ছে।’

তিনি বলেন, ‘দোকানপাট বা শপিং মল খুলে দেয়া হলেও অনিশ্চয়তা যাবে বলে মনে হয় না। সাধারণত বৈশাখের পোশাকের প্রয়োজন হয় উৎসবের জন্য। কিন্তু করোনায় উৎসবের আয়োজনে নিষেধাজ্ঞা থাকলে মানুষ কিনবে কেন?

‘কিনলেও তা হবে অনেক কম। তা ছাড়া করোনার প্রকোপ যে হারে বাড়ছে, তাতে মার্কেট খুলে দিলেও মানুষজন ভয় কাটিয়ে কতটুকুই বা মার্কেটমুখী হবে?’

বৈশাখ ঘিরে ফুলের চাহিদাও থাকে প্রচুর। এবার তা শূন্যের কোঠায় নেমে আসতে পারে বলে আশঙ্কা করছেন ব্যবসায়ীরা। শাহবাগের ফুলের দোকান ‘ফুল মেলা’র স্বত্বাধিকারী মো. মনির হোসেন বলেন, ফেব্রুয়ারি-বৈশাখ এসব দিনে প্রচুর ফুল বেচাকেনা হয়। কিন্তু গতবার বৈশাখী উৎসেরব কোনো চিহ্নও ছিল না। ফুল বিক্রিও ছিল হাতে গোনা। এবারও একই অবস্থা হবে দশটির জায়গায় একটি বিক্রি হবে। একে রমনায় বৈশাখী মেলা হবে না, তার ওপর এবার পয়লা বৈশাখে পবিত্র রমজানেরও শুরু। তাই বৈশাখের উৎসবও তেমন থাকবে না, বিক্রিও থাকবে না।

মাটির পণ্য বিক্রেতা মো. জাকির প্রায় এক যুগ ধরে মাটির জিনিসপত্র বিক্রি করেন। বৈশাখ এলে মাটির গয়না, পেয়ালাসহ জিনিসপত্রের চাহিদা বেশ বেড়ে যায়। চৈত্রের শেষ দিকে ও বৈশাখের দিন মেলাসহ বেশ কিছু দিন খুব বেশি বিক্রি হয়। কিন্তু গত বছর মেলা হয়নি। আয়ও হয়নি। এবারও একই অবস্থা; মেলা হবে না। লকডাউনের কারণে গত কয়েকদিন ভ্যান নিয়েও রাস্তায় বসতে পারেননি তিনি।

রাজধানীসহ জেলা শহরে বর্ষবরণে পান্তা-ইলিশ অন্যতম অনুষঙ্গ। ফলে ইলিশ কেনার এক ধরনের প্রতিযোগিতা তৈরি হয়। বাড়তি ইলিশের জোগান দিতে দেড়-দুই মাস আগে থেকে মাছ মজুত করেন ব্যবসায়ীরা। তারপরও মাছের চাহিদা বেশি থাকায় দাম বেড়ে যায়। এবারও বৈশাখের আগে বাজারে প্রচুর ইলিশ এসেছে। কিন্তু ক্রেতা নেই।

রাজধানীর কারওয়ানবাজারের মাছ বিক্রেতা মো. সুজন বলেন, সাধারণত বৈশাখের সময় ইলিশের প্রচুর চাহিদা থাকত। ফলে দামও চড়া থাকত। কিন্তু গত বছরের মতো এবারও এ সময় ইলিশের ক্রেতা কম, বিক্রিও কম। এক কেজি ওজনের ইলিশ ৮০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

বেসরকারি গবেষণা প্রতিষ্ঠান সাউথ এশিয়ান নেটওয়ার্ক অন ইকোনমিক মডেলিংয়ের (সানেম) গবেষণা পরিচালক ড. সায়মা হক বিদিশা নিউজবাংলাকে বলেন, ‘পহেলা বৈশাখ ঘিরে প্রতিবছরই অর্থনীতি চাঙ্গা হয়। কারণ এটি সার্বজনীন উৎসব। রোজার ঈদের পরেই দেশের বাণিজ্যের ক্ষেত্রে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ লেনদেন হয় এ সময়। কিন্তু করোনার কারণে গত বছরের মতো এ বছরও ভয়াবহ ক্ষতির মুখে পড়ছেন ক্ষুদ্র উদ্যোক্তারা। অনলাইনে কিছু বিক্রি হলেও বেশিরভাগই লসে থাকবে।

‘শপিংমল খুলে দিলেও মানুষজন আগের মতো শপিং মলমুখী হবে কি না তাও দেখার বিষয়। কারণ করোনা যে হারে বাড়ছে তাতে মানুষ একান্ত প্রয়োজন বা জীবিকার তাগিদ ছাড়া তেমন বের হবেন না। এতে শেষ পর্যন্ত এ ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে পারবেন না অনেকে। এ ক্ষেত্রে বিক্রি বাড়াতে অনলাইন মার্কেটিংয়ে জোর দিতে হবে। এদিকে সরকারের নজর দিতে হবে।’

আরও পড়ুন:
গঙ্গা ব্যারাজ প্রকল্পে যুক্ত হচ্ছে ভারত: সচিব

শেয়ার করুন

এ যেন অচেনা এক সুনামগঞ্জ

এ যেন অচেনা এক সুনামগঞ্জ

হেফাজত নেতা মামুনুলকে নিয়ে দেয়া ফেসবুক পোস্টের জেরে শাল্লায় হিন্দুদের বাড়িঘরে চলে হামলা। ছবি: নিউজবাংলা

হাসন রাজা, রাধারমন, দুর্বিন শাহ, শাহ আব্দুল করিম- সুনামগঞ্জের এমন অসংখ্য সাধক গানে-কথায় জীবনভর অসাম্প্রদায়িকতা ও মানবপ্রেমের কথা প্রচার করে গেছেন। আবার এই অঞ্চলে জন্ম নিয়ে বরুণ রায়, আবদুস সামাদ আজাদ ও সুরঞ্জিত সেনগুপ্তের মতো নেতারা বাম ও আওয়ামী ধারার রাজনীতিতে জাতীয় পর্যায়ে নেতৃত্ব দিয়েছেন। অথচ এই সুনামগঞ্জ থেকেই এখন ছড়াচ্ছে সাম্প্রদায়িক বিষবাষ্প।

বিস্তৃর্ণ হাওর, হাওরজুড়ে শুষ্ক মৌসুমে ধান আর বর্ষায় মাছ, পাগল করা বাউল সুর আর প্রগতিশীল রাজনীতির জন্য খ্যাতি ছিল সুনামগঞ্জের। তবে সাম্প্রতিক কিছু ঘটনা সামনে নিয়ে এসেছে অচেনা এক সুনামগঞ্জকে।

হেফাজতে ইসলামের সমালোচনা করাই যেন অপরাধ এখানে। সমালোচনা করলেই গ্রেপ্তার, মারধর, হেনস্তা করা হচ্ছে। বাড়িঘরে হামলা-হুমকি তো রয়েছেই। সাম্প্রতিক এ রকম কয়েকটি ঘটনা ঘটেছে সুনামগঞ্জে। এমনকি একজন সমালোচনা করার কারণে পুরো গ্রামে তাণ্ডবও চালানো হয়েছে। এসব ঘটনায় পুলিশ সব সময় সমালোচনাকারীর বিরুদ্ধে খড়গহস্ত করছে। তবে এতে করে তারা নিজেরাও রক্ষা পাচ্ছে না। থানাতেও ঘটেছে হামলার ঘটনা।

অসাম্প্রদায়িকতা ও সংস্কৃতিচর্চার জন্য বিখ্যাত সুনামগঞ্জে কেন একের পর এক এ রকম ঘটনা ঘটছে? কীভাবে উগ্রবাদী গোষ্ঠী শক্তিশালী হয়ে উঠল হাওরের এই সরল জনপদে?

স্থানীয় পর্যায়ের একাধিক রাজনীতিবিদ, সংগঠক, সংস্কৃতিকর্মী ও সাংবাদিকের সঙ্গে আলাপ হয় এ নিয়ে। প্রত্যেকেই বলছেন, বামধারার রাজনীতি দুর্বল হয়ে যাওয়া, ভোটের লোভে আওয়ামী লীগ নেতারা আদর্শচ্যুত হওয়া ও ভিন্ন আদর্শের লোকদের দলে ভেড়ানো, সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ডে বাধা ও দুর্বল হয়ে পড়া এবং একেবারে তৃণমূল পর্যায়ে ধর্মীয় উগ্রবাদী গোষ্ঠীর ব্যাপক কর্মকাণ্ড গত দুই দশকে বদলে দিয়েছে সুনামগঞ্জের চিত্র।

অথচ মুক্তিযুদ্ধের পরও এখানে ভোটের মূল লড়াই হতো আওয়ামী লীগ আর বাম দলগুলোর মধ্যে। প্রগতিশীল রাজনৈতিক চর্চার জন্য খ্যাতি ছিল এই অঞ্চলের। খ্যাতি ছিল বাউল ও সহজিয়া দর্শনের সাধকদের উর্বরভূমি হিসেবে।

হাসন রাজা, রাধারমন, দুর্বিন শাহ, শাহ আব্দুল করিম- সুনামগঞ্জের এমন অসংখ্য সাধক গানে-কথায় জীবনভর অসাম্প্রদায়িকতা ও মানবপ্রেমের কথা প্রচার করে গেছেন। আবার এই অঞ্চলে জন্ম নিয়ে বরুণ রায়, আবদুস সামাদ আজাদ ও সুরঞ্জিত সেনগুপ্তের মতো নেতারা বাম ও আওয়ামী ধারার রাজনীতিতে জাতীয় পর্যায়ে নেতৃত্ব দিয়েছেন।

অথচ এই সুনামগঞ্জ থেকেই এখন ছড়াচ্ছে সাম্প্রদায়িক বিষবাষ্প।

একের পর এক ঘটনা

গত ১৫ মার্চ সুনামগঞ্জের দিরাইয়ে হেফাজতে ইসলামের একটি সমাবেশে বক্তব্য রাখেন সংগঠনটির কেন্দ্রীয় নেতা জুনায়েদ বাবুনগরী ও মামুনুল হক। পরদিন দিরাইয়ের পাশের শাল্লা উপজেলার নোয়াগাঁও গ্রামের ঝুমন দাস নামের এক যুবক ফেসবুকে মামুনুল হকের সমালোচনা করে স্ট্যাটাস দেন।

sunamganj hefajot
ঝুমন দাসের ফেসবুক স্ট্যাটাসের জেরে ভাঙচুর চালানো হয় ৮৭টি হিন্দুবাড়িতে

এ নিয়ে ওই দিনই শাল্লায় উত্তেজনা দেখা দেয়। স্থানীয় লোকদের উসকে দেয় উগ্রবাদীরা। অপ্রীতিকর পরিস্থিতি এড়াতে ওই রাতেই ঝুমন দাসকে পুলিশের হাতে তুলে দেন গ্রামবাসী।

পরদিন ১৭ মার্চ বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকীর সকালে ঝুমনের গ্রাম নোয়াগাঁওয়ে লাঠিসোঁটা নিয়ে হামলা চালায় কয়েক হাজার লোক। মসজিদের মাইকে ঘোষণা দিয়ে আশপাশের গ্রাম থেকে মিছিল নিয়ে এসে তারা ভাঙচুর ও লুটপাট করে গ্রামের অন্তত ৮০টি বাড়িতে।

এ ঘটনার রেশ না কাটতেই রিসোর্ট-কাণ্ডের পর ৪ এপ্রিল হেফাজত নেতা মামুনুল হক ও ‘শিশুবক্তা’ রফিকুল ইসলাম মাদানীকে নিয়ে সমালোচনা করায় তোপের মুখে পড়েন দিরাইয়ের এক স্কুলশিক্ষক। ফেসবুকে নয়, স্থানীয় একটি বাজারে চায়ের আড্ডায় মামুনুল হক ও মাদানীর সমালোচনা করেছিলেন স্থানীয় একটি স্কুলের প্রধান শিক্ষক এসবি গোলাম মোস্তফা। এতেই ক্ষেপে যায় হেফাজত অনুসারীরা।

প্রথমে তর্কাতর্কি, পরে কয়েক শ লোক জড়ো করে ওই শিক্ষকের বিরুদ্ধে মিছিল করে তারা। যথারীতি অভিযোগ আনা হয় ধর্ম অবমাননার। পরে ইউএনও, উপজেলা চেয়ারম্যানসহ স্থানীয় প্রশাসন হাজির হয় ঘটনাস্থলে। উদ্ভূত পরিস্থিতিতে বাধ্য হয়ে ক্ষমা চান স্কুলশিক্ষক।

তবে এতেও ক্ষান্ত হয়নি হেফাজত অনুসারীরা। তারা স্কুলশিক্ষকের পদচ্যুতির দাবি জানায়। পরিস্থিতি এমন পর্যায়ে গড়ায় যে, শিক্ষা উপমন্ত্রী মুহিবুল হাসানকেও সুনামগঞ্জের জেলা প্রশাসককে ফোন করে ওই শিক্ষকের নিরাপত্তা নিশ্চিতের নির্দেশ দিতে হয়।

মামুনুল হক যেদিন নারীসহ ধরা পড়লেন সোনারগাঁয়ে, সেদিনও সুনামগঞ্জের তাহিরপুরে হেনস্তার শিকার হন যুবলীগের এক নেতা। মামুনুলের নারীসহ রিসোর্টে যাওয়ার ছবি ফেসবুকে পোস্ট করে বিপাকে পড়েন যুবলীগ নেতা এমাদ হোসেন জয়।

এই পোস্টকে কেন্দ্র করে এলাকায় উত্তেজনা দেখা দেয়। পরে পুলিশ গিয়ে তাকে বাড়ি থেকে ধরে নিয়ে আসে। পরদিন আদালত থেকে জামিনে মুক্তি পান তিনি। জয় ওই এলাকার বীর মুক্তিযোদ্ধা জজ মিয়ার ছেলে ও ইউনিয়ন যুবলীগের মুক্তিযোদ্ধাবিষয়ক সম্পাদক।

sunamganj hefajot
যুবলীগের স্থানীয় নেতা এমাদ হোসেন জয়

সর্বশেষ হেফাজতের সমালোচনা করে পোস্ট দিয়ে হেনস্তার শিকার হন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় (ঢাবি) ছাত্রলীগের নেতা আফজাল খান। তার বাড়ি সুনামগঞ্জের ধর্মপাশায়। হেফাজতকে নিয়ে পোস্ট দেয়ার পর গত মঙ্গলবার তাকে ধর্মপাশার জয়শ্রী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ অফিসে আটকে রেখে লাঞ্ছিত করা হয়। তাৎক্ষণিক কয়েক শ মানুষ জড়ো হয়ে তার বিরুদ্ধে বিক্ষোভ করে। পরে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে তাকে হাতকড়া পরিয়ে থানায় নিয়ে আসে ও উত্তেজিত জনতার কাছে ক্ষমা চাইতে বাধ্য করে।

এদিকে, গত শনিবার রাতে মামুনুল হককে আটক করা হয়েছে এমন খবরে ছাতকে মিছিল বের করে হেফাজতে ইসলামের অনুসারীরা। এই মিছিল থেকে ছাতক থানায় হামলা ও ভাঙচুর করা হয়।

এ রকম একের পর এক ঘটনা ঘটেই চলছে। ফেসবুকে হেফাজত ও তাদের নেতাদের সমালোচনা করে পোস্ট দিলেই হামলা, হেনস্তা, গ্রেপ্তার ছাড়াও ফেসবুকে গালাগালি ও হুমকির অভিযোগ রয়েছে অসংখ্য।

প্রশাসনের প্রশ্নবিদ্ধ ভূমিকা

শাল্লার তাণ্ডবের পরই প্রশ্ন ওঠে প্রশাসনের ভূমিকা নিয়ে। আগের দিন উত্তেজনা জানার পরও নোয়াগাঁওয়ে নিরাপত্তামূলক ব্যবস্থা নেয়া হয়নি; সেই সুযোগে তাণ্ডব চালানো হয় পুরো গ্রামে।

পুলিশের অভ্যন্তরীণ তদন্তে এই অভিযোগের প্রমাণও মিলেছে। এই হামলা ও লুটপাটের ঘটনায় দায়িত্বে অবহেলার দায়ে গত মঙ্গলবার শাল্লা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নাজমুল হককে বরখাস্ত করা হয়েছে। এ ছাড়া দিরাই থানার ওসি আশরাফুল ইসলামকে মৌলভীবাজারে বদলি করা হয়েছে।

শাল্লায় মামুনুল হকের বিরুদ্ধে ফেসবুকে সমালোচনা করায় আটক ঝুমন দাশের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা করেছে পুলিশ। এই মামলায় পুলিশের বাদী হওয়া আইনবিরোধী বলে মন্তব্য করেছেন আইনজীবীরা।

পুলিশের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে তাহিরপুর, ধর্মপাশা ও দিরাইয়ের ঘটনায়ও। হেফাজতের সমালোচনা করায় তাহিরপুরে যুবলীগ নেতাকে কেন গ্রেপ্তার করা হলো, ধর্মপাশায় ছাত্রলীগ নেতাকে কেন হাতকড়া পরিয়ে থানায় নিয়ে আসা ও ক্ষমা চাইতে বাধ্য করা হলো, এসব প্রশ্ন তুলে তার সমালোচনা করছেন অনেকেই।

sunamganj hefajot
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের আন্তর্জাতিক বিষয়ক উপসম্পাদক আফজাল খান

ধর্মপাশায় ছাত্রলীগ নেতাকে হেনস্তার ঘটনায় থানার ওসি দেলোয়ার হোসেনসহ তিন পুলিশ কর্মকর্তাকে বুধবার বদলি করা হয়েছে।

সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলার সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান মুক্তাদীর আহমদ মুক্তা মনে করেন, হেফাজত ধর্মীয় উন্মাদনা সৃষ্টি করে একটা ভীতির পরিবেশ তৈরি করে। প্রশাসনও এতে ভয় পায়। ফলে তাদের ব্যাপারে নমনীয় থাকে। এই নমনীয়তাকে কাজে লাগায় হেফাজত। এ ছাড়া মাঠ প্রশাসনে অনেকে তাদের অনুসারীও থাকতে পারে।

হেফাজতের সমালোচনা করলেই কেন গ্রেপ্তার করা হচ্ছে, এমন প্রশ্ন করা হয় সুনামগঞ্জের পুলিশ সুপার (এসপি) মিজানুর রহমানকে। তিনি অযথা কাউকে আটক বা হেনস্তা করা হচ্ছে না জানিয়ে বলেন, অনেক সময় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশকে অনেক ভূমিকা নিতে হয়। তবে যা কিছু হচ্ছে আইন মোতাবেকই হচ্ছে।

তিনি বলেন, কাউকে ধরে আনা মানেই সে অপরাধী নয়। পুলিশের কাজ বিচার করা নয়। পুলিশ আটকের পর আদালতে পাঠায়। আদালত যদি মনে করে সে অপরাধী নয় তাহলে ছেড়ে দেয়।

তবে সাম্প্রতিক সুনামগঞ্জের ঘটনাগুলো প্রসঙ্গে পুলিশের সিলেট রেঞ্জের উপমহাপরিদর্শক (ডিআইজি) মফিজ উদ্দিন আহম্মেদ বলেন, যেসব ঘটনার ব্যাপারে অভিযোগ উঠেছে সেগুলোর বিষয়ে তদন্ত হচ্ছে। কারও কারও বিরুদ্ধে ব্যবস্থাও নেয়া হচ্ছে।

তিনি বলেন, পুলিশ, আইনের বাইরে কেউ কিছু করতে পারবে না। করলে বিপদে পড়বে। এ ব্যাপারে সবাইকে কঠোর নির্দেশনা দেয়া আছে।

আওয়ামী লীগ-হেফাজত একাকার

১৫ মার্চ সুনামগঞ্জের দিরাইয়ে যে সমাবেশটি করে হেফাজতে ইসলাম, সরাসরি এর সহযোগিতায় ছিলেন অনেক আওয়ামী লীগ নেতা। আওয়ামী লীগ দলীয় দিরাই পৌরসভার মেয়র বিশ্বজিত রায় ওই সমাবেশে মঞ্চে উঠে বক্তৃতাও করেছেন।

কেবল এই সভায়ই নয়, সম্প্রতি সুনামগঞ্জের বিভিন্ন এলাকায় ধর্মীয় সভার নামে বেশ কয়েকটি জমায়েত করে হেফাজতে ইসলাম। এতে সংগঠনটির কেন্দ্রীয় নেতারা অংশ নেন। তার সবগুলোতেই অর্থ, জনবল, স্বেচ্ছাশ্রম দিয়ে এবং অতিথি হয়ে সহযোগিতা করেছেন স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতারা।

সুনামগঞ্জের তৃণমূল পর্যায়ে আওয়ামী লীগ ও হেফাজত অনেকটা একাকার হয়ে পড়েছে বলে অভিযোগ দলটির অনেক নেতার। তারা নিজেদের গ্রুপ ভারী করতে জামায়াত-হেফাজতকে দলে ভেড়াচ্ছেন। আবার অনেক নেতা নিজেই হেফাজতের প্রতি ঝুঁকছেন বলে অভিযোগ আছে। এ

ছাড়া দলীয় গ্রুপিং ও ব্যক্তিগত দ্বন্দ্ব থেকে অনেকে হেফাজতকে ব্যবহার করে সুবিধা নেয়ার অভিযোগও আছে।

দিরাইয়ে সমাবেশের পর শাল্লায় হিন্দুপল্লিতে যে হামলার ঘটনা ঘটেছে, তাতে প্রধান আসামি করা হয়েছে স্থানীয় ইউপি সদস্য শহীদুল ইসলাম স্বাধীনকে। তিনি যুবলীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত বলে এলাকায় চাউর আছে।

এ ছাড়া ধর্মপাশায় ঢাবি শাখা ছাত্রলীগ নেতা আফজাল খানকে হেনস্তার ঘটনায় করা মামলার আসামি জয়শ্রী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের (সদ্য বহিষ্কৃত) সাধারণ সম্পাদক আবুল হাশেম আলম ও তার ছেলে আল মুজাহিদ।

sunamganj hefajot
হেফাজতের সমাবেশ মঞ্চে দিরাই পৌরসভার মেয়র বিশ্বজিৎ রায় (বাম থেকে চতুর্থ)

মুজাহিদের নেতৃত্বেই স্থানীয়দের উসকে দিয়ে এই হেনস্তার ঘটনা ঘটে বলে মামলায় অভিযোগ করেছেন আফজাল। এ ঘটনায় আবুল হাশেম আলমকে বুধবার বহিষ্কার করেছে আওয়ামী লীগ। একই দিনে তাকে গ্রেপ্তারও করেছে পুলিশ।

সুনামগঞ্জে সাম্প্রতিক এ রকম সবগুলো ঘটনায়ই দেখা গেছে আওয়ামী লীগ ও হেফাজত নেতারা একাকার। সমাবেশ কিংবা হামলা- সবই মিলেমিশে করছেন তারা।

সিলেট জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সহসভাপতি এম রশিদ আহমদের বাড়ি সুনামগঞ্জের ছাতকে। জেলার আওয়ামী রাজনীতির এই অবস্থা সম্পর্কে তিনি বলেন, ‘আমরা এখন ভোটের রাজনীতি করি। আদর্শ রাজনীতি থেকে সরে এসেছি। এতে প্রতিক্রিয়াশীলরা শক্তিশালী হয়ে উঠেছে। একসময় সুনামগঞ্জের প্রগতিশীল নেতারা সারা দেশকে নেতৃত্ব দিয়েছেন। এখন সেদিন বদলে গেছে। আমরাই দলে প্রতিক্রিয়াশীলদের জায়গা করে দিচ্ছি।’

একই ধরনের মন্তব্য করেছেন জগন্নাথপুর উপজেলার সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান মুক্তাদির আহমদ মুক্তাও। তিনি বলেন, ‘রাজনীতির অদূরদরদর্শিতার কারণে এমনটি হচ্ছে। আওয়ামী লীগের স্থানীয় পর্যায়ের নেতারা মূল আদর্শ থেকে দূরে সরে যাচ্ছেন। দলে আদর্শবিরোধী অনেকে ঢুকছে। অনেক নেতার মাধ্যমে তারা ঢুকছে। দলীয় আদর্শ প্রচারের চেয়ে নেতারা গড্ডালিকায় গা ভাসান। আবার মুখে ধর্মের বুলি আওড়ে হেফাজতিরা আওয়ামী লীগ নেতা ও স্থানীয়দের সহজেই দলে ভিড়িয়ে নিতে পারে।’

এ ব্যাপারে জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি খাইরুল কবির রুমেন বলেন, ‘সুনামগঞ্জ শান্তির শহর। সংস্কৃতির শহর। কিন্তু কিছু মৌলবাদী এ শহরের শান্তি নষ্ট করতে নানা রকম পাঁয়তারা করছে। এদের মধ্যে আমাদের দলের কিছু লোক তাদের সহযোগিতা করছে। ইতোমধ্যে ছাত্রলীগ ও আওয়ামী লীগ থেকে কয়েকজনকে বহিষ্কার করা হয়েছে এবং আমাদের মনিটরিং সেল এসব বিষয়ে নজরদারি রাখছে। এমন যাদেরই পাওয়া যাবে, তাদের দল থেকে বহিষ্কার করা হবে।’

আছে উসকানি, গুজব

সুনামগঞ্জে সাম্প্রতিক সবগুলো ঘটনার পেছনেই উসকানি দিয়ে ও গুজব ছড়িয়ে সাধারণ মানুষকে উত্তেজিত করার অভিযোগ রয়েছে।

শাল্লার ঘটনা নিয়ে সংবাদ সম্মেলনে সুনামগঞ্জের এসপি দাবি করেন, পুলিশ সেদিন নিষ্ক্রিয় ছিল না

শাল্লা, দিরাই, তাহিরপুর কিংবা ধর্মপাশায় ঘটা সাম্প্রতিক সবগুলো ঘটনায় দেখা গেছে, ফেসবুকে স্ট্যাটাস দেয়ার পর দ্রুততম সময়ে তা পুরো এলাকায় ছড়িয়ে পড়ে। মুহূর্তে জড়ো হয়ে যায় হাজারও মানুষ। হেফাজতে ইসলামের সমালোচনাকে ইসলাম ধর্মের সমালোচনা বলেও অপপ্রচার চালানো হয় এবং সমালোচনাকারীকে কোণঠাসা করে ফেলা হয়।

সুনামগঞ্জের একটি থানার ওসি নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, হেফাজতের নেতারা উসকানি দিয়ে ও গুজব ছড়িয়ে এমন পরিস্থিতির তৈরি করে তাতে এলাকায় বিশৃঙ্খলা তৈরি হতে পারে। ফলে অনেকের জানমাল রক্ষায় পুলিশ বাধ্য হয়ে সমালোচনাকারীকে ধরে নিয়ে আসে।

সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ডে বাধা

সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ডের জন্য খ্যাতি রয়েছে সুনামগঞ্জের। অসংখ্য বাউল ও লোকশিল্পীর জন্ম এ অঞ্চলে। বছরজুড়েই লেগে থাকত গান-নাচ-নাটকের উৎসব। তবে সাম্প্রতিক একদিকে সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ডে বাধা দেয়া হচ্ছে, অন্যদিকে হেফাজত ইসলামের বিভিন্ন কর্মসূচিকে উৎসাহিত করা হয়েছে।

সুনামগঞ্জের সাংবাদিক ও প্রগতিশীল আন্দোলনের কর্মী শামস শামীম বলেন, ‘সুনামগঞ্জে আগে বছরজুড়ে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও মেলা হতো। ছোটবেলা পথেঘাটে মেলা, বাউল গানের আসর, ওরস দেখেছি। এগুলোতে সব ধর্মের মানুষ যেত। সব মানুষের সম্মেলনের কথা বলা হতো। এখন এগুলো বন্ধ। এখন এসব আয়োজন করতে গেলেই বাধা আসে। ধর্মান্ধরা বাধা দেয়। প্রশাসন বাধা দেয়। এখন সব বন্ধ করে কেবল ওয়াজ মাহফিল হয়। আর এসব মাহফিলে ধর্মচর্চার চেয়ে উগ্রতা ও উসকানিমূলক কথাই বেশি হয়। এ জন্য প্রশাসন ও সরকার দায়ী।’

সুনামগঞ্জের বাউলশিল্পী লাল শাহ। শাল্লার তাণ্ডবের পর সেখানে ছুটে গিয়েছেন তিনি। লাল শাহ বলেন, ‘আমি যদি মানুষই হতে পারি না, তাহলে মুসলমান হব কীভাবে?’

লাল শাহ বলেন, ‘আমরা এখন মনে করছি নামাজ পড়লে, রোজা রাখলেই বেহেশতে চলে যাব। কিন্তু মানুষ চিনলাম না। বিভিন্ন জনকে ফতোয়া দিলাম। এসব করে তো হবে না। আগে মানুষ হতে হবে। মানুষ চিনতে হবে।’

তিনি বলেন, ‘মানুষ কেবল ভুল চিন্তা করছে। আমাকে বেহেশতে নেবে আমার সৎকর্ম। আমার দেহের ভেতরে যে প্রকৃত মানুষ আছে সে-ই মানুষ।’

আরও পড়ুন:
গঙ্গা ব্যারাজ প্রকল্পে যুক্ত হচ্ছে ভারত: সচিব

শেয়ার করুন

রোহিঙ্গা শিবিরে তিন বছরে ২০ অগ্নিকাণ্ড

রোহিঙ্গা শিবিরে তিন বছরে ২০ অগ্নিকাণ্ড

কক্সবাজারের উখিয়া টেকনাফের রোহিঙ্গা শিবিরগুলোতে তিন বছরে অন্তত ২০টি অগ্নিকাণ্ড দেখা গেছে। ছবি: নিউজবাংলা

সবশেষ ২২ মার্চ উখিয়া বালুখালী রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ভয়াবহ আগুনে অন্তত ১১ জন রোহিঙ্গার প্রাণ যায়, আহত হন অর্ধশতাধিক রোহিঙ্গা। প্রায় ছয় ঘণ্টায় আগুন ৯, ১০, ১১ নম্বর ক্যাম্পে ছড়িয়ে পড়ে। ঘর পুড়েছে অন্তত ১০ হাজার। নিঃস্ব হয়েছেন ৪৫ হাজার রোহিঙ্গা।

কক্সবাজারের উখিয়া টেকনাফে ৩৪টি রোহিঙ্গা শিবিরে অগ্নিকাণ্ড খুব পরিচিত বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে। গত তিন বছরে শিবিরগুলোতে ছোট-বড় ২০টির বেশি আগুন লাগার ঘটনা দেখেছে রোহিঙ্গারা।

এসব ঘটনার রহস্য উদঘাটন করতে পারেনি প্রশাসন। ফলে অগ্নিকাণ্ডগুলোর সূত্রপাত অজানাই থেকে যাচ্ছে।

সবশেষ ২২ মার্চ উখিয়া বালুখালী রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ভয়াবহ আগুনে অন্তত ১১ জন রোহিঙ্গার প্রাণ যায়, আহত হন অর্ধশতাধিক রোহিঙ্গা। প্রায় ছয় ঘণ্টায় আগুন ৯, ১০, ১১ নম্বর ক্যাম্পে ছড়িয়ে পড়ে। ঘর পুড়েছে অন্তত ১০ হাজার। নিঃস্ব হয়েছেন ৪৫ হাজার রোহিঙ্গা।

দুই সপ্তাহের বেশি সময় চলে গেলেও অগ্নিকাণ্ডের সূত্রপাত কীভাবে হয়েছে তা-ও বলা যাচ্ছে না। যদিও বলা হচ্ছে, এ ঘটনায় গঠিত সাত সদস্যবিশিষ্ট তদন্ত কমিটি ইতোমধ্যে তাদের তদন্ত প্রতিবেদন মন্ত্রণালয়ে জমা দিয়েছে।

তদন্ত কমিটির প্রধান শাহ রেজওয়ান হায়াত জানান, অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় একটি পূর্ণাঙ্গ প্রতিবেদন মন্ত্রণালয়ে জমা দেয়া হয়েছে। এতে প্রতিবেদনে অগ্নিকাণ্ড রোধে বেশ কিছু সুপারিশ করা হয়েছে।

নিউজবাংলার অনুসন্ধানে জানা যায়, উখিয়া টেকনাফে প্রায় তিন বছরে অন্তত ২০ অগ্নিকাণ্ড দেখেছে সেখানে আশ্রয় নেয়া রোহিঙ্গারা।

এর মধ্যে ২০১৮ সালের ১১ জুলাই উখিয়া কুতুপালং ট্রানজিট পয়েন্ট এলাকায় ভয়াবহ আগুনের ঘটনা ঘটে। ওই দিনের আগুনে স্ত্রী ও তিন সন্তান হারান রোহিঙ্গা শরণার্থী আব্দুর রহমান।

চলতি বছরের ১৩ জানুয়ারি বুধবার টেকনাফের নয়াপাড়া রোহিঙ্গা শিবিরে অগ্নিকাণ্ডে ৫৫২টি ঘর পুড়ে ছাই হয়ে যায়। এতে তিন হাজারেরও অধিক রোহিঙ্গা গৃহহীন হয়ে পড়ে।

এর কয়েক দিন পর ১৭ জানুয়ারি উখিয়া সফি উল্লাহ কাটা রোহিঙ্গা শরণার্থী ১৭ নম্বর শিবিরে অগ্নিকাণ্ডে চারটি লার্নিং সেন্টার পুড়ে যায়।

গত ১৯ মার্চ শুক্রবার উখিয়া কুতুপালং ১৭ নম্বর রোহিঙ্গা শরণার্থী শিবিরে আগুনে এনজিওর কয়েকটি হাসপাতাল পুড়ে যায়।

১৭ মার্চ বুধবার টেকনাফের জাদিমুড়া রোহিঙ্গা শরণার্থী শিবিরে অগ্নিকাণ্ডে বেশ কয়েকটি বসতঘর পুড়ে যায়। সেখানে আরও অন্তত পাঁচবার আগুন লাগার ঘটনা ঘটেছে।

২০২০ সালে আগুনে রোহিঙ্গাদের প্রায় এক হাজার বসতঘর ছাই হয়ে যায়। এছাড়া হাসপাতাল, দোকানপাট, মসজিদ, মাদ্রাসা, স্কুলসহ বেশ কয়েকটি স্থাপনা পুড়ে যায়।

২০২০ সালের ১২ মে উখিয়া কুতুপালং লম্বাশিয়া শরণার্থী শিবিরে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে ৬০০ বসতঘর পুড়ে যায়। এর কয়েক দিন পর ১৭ মে কুতুপালং রোহিঙ্গা শরণার্থী শিবিরে অগ্নিকাণ্ডে ৩৫০টি বসতঘর ও ৩০ টি দোকান পুড়ে যায়।

৮ অক্টোবর উখিয়া কুতুপালং শরণার্থী শিবিরে অগ্নিকাণ্ডে ৫০টির বেশি বসতঘর পুড়ে যায়। একই বছরের ২৬ এপ্রিল উখিয়া কুতুপালং নিবন্ধিত রোহিঙ্গা শরণার্থী শিবিরে অগ্নিকাণ্ডে ১৪ দোকান পুড়ে যায়। ১ এপ্রিল টেকনাফের হোইয়ক্যং চাকয়ারকুল রোহিঙ্গা শরণার্থী শিবিরে স্কুলসহ ১৫টি বসতঘর ছাই হয়। ২০১৯ সালের আরও বেশ কয়েকটি আগুনের ঘটনা ঘটে। এতে অনেক হতাহতের ঘটনা ঘটে।

স্থানীয়রা জানান, রোহিঙ্গা শরণার্থী শিবিরগুলো বারবার অগ্নিকাণ্ডের জন্য রোহিঙ্গারাই দায়ী। তারা নিজ দেশে ফেরত যেতে চায় না বলে বারবার এ ধরনের কর্মকাণ্ড লিপ্ত হয়।

তারা বলছেন, রোহিঙ্গা শরণার্থী শিবিরে অগ্নিকাণ্ডের পেছনে রোহিঙ্গারা জড়িত এমনকি অনেক রোহিঙ্গাকে আগুন লাগিয়ে দেয়ার সময় হাতেনাতে ধরার পরও তা তদন্তে ওঠে আসে না অগ্নিকাণ্ডের প্রকৃত কারণ।

স্থানীয়দের অভিযোগ, প্রতিবারই অগ্নিকাণ্ডে ঘটনায় তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়ার কথা বলে দায় সেরেছে প্রশাসন। ক্যাম্পের অভ্যন্তরে স্থানীয়দের বাসা বাড়িতে থাকতে দেয়া না বলে অভিযোগ রয়েছে।

গত ২২ মার্চের ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা প্রসঙ্গে উখিয়া বালুখালী ৮ নম্বর রোহিঙ্গা ক্যাম্পে মাঝি ছৈয়দ জানান, কীভাবে আগুন লেগেছে জানি না। তবে এ ঘটনায় তার ব্লকের শতাধিক বসতঘর ও দোকান পুড়ে গেছে বলে জানান তিনি।

আগুন লাগার কারণ জানিয়ে একই শরণার্থী ক্যাম্পের এক রোহিঙ্গা নারী নিউজবাংলাকে বলেন, ‘অইনলাইগ্গেদে হিন লই একেক জনে একেক ডইল্লাহ হতা হর কেচ্ছুয়ে হয়দে অইনধরাই দিয়ে আর কেচ্ছুয়ে হয়দে গ্যাসর চুলাতো অইন লাইগে।’

তিনি আরও বলেন, ‘অইনর দাউ দাউ গরি জ্বইলে দে এক্কান জিনিসও গররতো বাইর গরি নপারি। চোখর সামনে বেগ্গিন পু্রি গেইয়। এহন পযন্ত অল্প কিছু সাহায্য সহযোগিতা পাইয়ি।’

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক উখিয়ার স্থানীয় একজন বাসিন্দা জানান, রোহিঙ্গা শরণার্থী ক্যাম্পে বারবার অগ্নিকাণ্ডের জন্য মূল কারণ যত্রতত্র গ্যাস সিলিন্ডার। রোহিঙ্গা শরণার্থী ক্যাম্পে প্রতিটি ঘরে দুই থেকে তিনটি গ্যাস সিলিন্ডার থাকলেও এগুলো ব্যবহার সম্পর্কে তারা সচেতন নয়। যার কারণে ক্যাম্পে প্রতিনিয়ত অগ্নিকাণ্ডে ঘটনা ঘটেছে।

উখিয়া পাংলখালী ইউপি চেয়ারম্যান গফুর উদ্দিন জানান, রোহিঙ্গা শরণার্থী ক্যাম্পে বেশির ভাগ অগ্নিকাণ্ডে ঘটনা পরিকল্পিত। এখনও পর্যন্ত রোহিঙ্গা ক্যাম্পে সংঘটিত অগ্নিকাণ্ডের মূল রহস্য উদঘাটন করা সম্ভব হয়নি।

২২ মার্চের আগুনে ক্ষতিগ্রস্তদের অবস্থার কথা জানিয়ে উখিয়া বালুখালী রোহিঙ্গা ক্যাম্প-৯ এর ক্যাম্প ইনচার্জ তানজিম নিউজবাংলাকে বলেন, ‘ঘরবাড়ি পুড়ে যায় রোহিঙ্গারা ফের ক্যাম্পে আসতে শুরু করেছে। তারা তাবু দিয়ে ঘর তৈরিতে ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন।’

তদন্ত কমিটির প্রধান ও কক্সবাজারস্থ শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনার শাহ রেজওয়ান হায়াত নিউজবাংলাকে বলেন, ‘২২ মার্চ অগ্নিকাণ্ডে একটি পূর্ণাঙ্গ প্রতিবেদন মন্ত্রণালয়ে জমা দেয়া হয়েছে। প্রতিবেদনে অগ্নিকাণ্ড রোধে বেশ কিছু সুপারিশ করা হয়েছে।’

বালুখালীতে অগ্নিকাণ্ডে ক্ষতিগ্রস্ত রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শনে গিয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেছেন, ‘রোহিঙ্গা ক্যাম্পে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনার পেছনে কারও যদি দোষত্রুটি পাওয়া যায়, কেউ যদি কর্তব্যে অবহেলা থাকে বা কারও দুরভিসন্ধি থাকে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

আরও পড়ুন:
গঙ্গা ব্যারাজ প্রকল্পে যুক্ত হচ্ছে ভারত: সচিব

শেয়ার করুন

মহামারিকালেও সঞ্চয়পত্র বিক্রিতে উল্লম্ফন

মহামারিকালেও সঞ্চয়পত্র বিক্রিতে উল্লম্ফন

আট মাসে সঞ্চয়পত্র বিক্রি হয়েছে ৭৫ হাজার কোটি টাকার বেশি। এ হারে বিক্রি অব্যাহত থাকলে অর্থবছর শেষে এবার মোট বিক্রি লাখ কোটি টাকা ছাড়িয়ে যেতে পারে। অর্থনীতিবিদেরা এর কারণ বুঝতে পারছেন না।

করোনাভাইরাস মহামারির মধ্যেও সঞ্চয়পত্র বিক্রি বেড়েই চলেছে। চলতি অর্থবছরের আট মাসে (জুলাই-ফেব্রুয়ারি) ৭৫ হাজার কোটি টাকার সঞ্চয়পত্র বিক্রি হয়েছে। এই অংক গত অর্থবছরের পুরো সময়ের চেয়েও ১২ শতাংশ বেশি।

এক বছরেরও বেশি সময় ধরে চলা মহামারিতে মানুষের আয় কমে গেছে। তাছাড়া মুনাফার ওপর করের হার বৃদ্ধি এবং নানা ধরনের কড়াকড়ি আরোপের পরও সঞ্চয়পত্র বিক্রিতে কেন এই উল্লম্ফন– অর্থনীতিবিদেরা সুনির্দিষ্ট কারণ পাচ্ছেন না।

বাংলাদেশ উন্নয়ন গবেষণা প্রতিষ্ঠানের (বিআইডিএস) গবেষক রাষ্ট্রায়ত্ত অগ্রণী ব্যাংকের চেয়ারম্যান জায়েদ বখত নিউজবাংলাকে বলেন, সংকটের সময়ে সঞ্চয়পত্র বিক্রির এই উল্লম্ফন অস্বাভাবিক। প্রতি মাসেই অবাক করার মতো বিক্রি হচ্ছে।

তিনি বলেন, ‘কিন্তু কেন বাড়ছে, বুঝতে পারছি না। মহামারিতে মানুষের আয়-উপার্জন কমে গেছে। অনেকে সঞ্চয় ভেঙে সংসার চালাচ্ছেন। এর মধ্যেও সঞ্চয়পত্র বিক্রি অস্বাভাবিক বৃদ্ধি সত্যিই বিস্ময়কর।’

পলিসি রিসার্চ ইনস্টিটিউটের (পিআরআই) নির্বাহী পরিচালক আহসান এইচ মনসুর বলেন, ‘এই কঠিন সময়ে মানুষ টাকা পাচ্ছে কোথায়? বুঝতে পারছি না।’

তবে এর দুটি সম্ভাব্য কারণ থাকতে পারে বলে মনে করেন মনসুর। বলেন, ‘প্রথমত প্রবাসীদের পাঠানো রেমিট্যান্সের একটি অংশ দিয়ে মানুষ সঞ্চয়পত্র কিনছে। আগেও কিনত, তবে এখন রেমিট্যান্স প্রবাহ বাড়ায় এই অংক বেড়েছে। এছাড়া অন্য যে কোনো সঞ্চয় প্রকল্পের চেয়ে সঞ্চয়পত্রের সুদের হার যেহেতু বেশি, সবাই এখানেই বিনিয়োগ করছে।’

সঞ্চয়পত্র বিক্রির ক্ষেত্রে সরকার এখন জাতীয় পরিচয়পত্র এবং টিআইএন (কর শনাক্তকরণ নম্বর) বাধ্যতামূলক করেছে। তাছাড়া ব্যাংক হিসাব ছাড়া সঞ্চয়পত্র কেনা যায় না।

এখন আর কেউ ভুয়া নামে বা একই ব্যক্তি বিভিন্ন নামে সঞ্চয়পত্র কিনতে পারে না বলেই সঞ্চয়পত্রের এত বিক্রি অস্বাভাবিক ঠেকছে গবেষকদের কাছে।

ব্যাংকগুলোর আমানতের সুদের হার কম এবং পুঁজিবাজারে দীর্ঘ মন্দার কারণে গত কয়েক বছর ধরে লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছিল সঞ্চয়পত্র বিক্রি। এতে সরকারের ঋণের বোঝাও অস্বাভাবিকভাবে বেড়ে যাচ্ছিল।

বিক্রির চাপ কমাতে গত বছরের ১ জুলাই থেকে সঞ্চয়পত্রে মুনাফার ওপর উৎসে করের হার ৫ শতাংশ থেকে বাড়িয়ে ১০ শতাংশ করা হয়। একইসঙ্গে এক লাখ টাকার বেশি সঞ্চয়পত্র কিনতে টিআইএন (কর শনাক্তকরণ নম্বর) বাধ্যতামূলক করা হয়। ব্যাংক অ্যাকাউন্ট না থাকলে সঞ্চয়পত্র বিক্রি না করার শর্ত আরোপসহ আরও কিছু কঠোর ব্যবস্থা নেয়ার ফলে কমতে শুরু করে সঞ্চয়পত্রের বিক্রি।

কিন্তু এই অর্থবছরের শুরু থেকেই তা আবার বাড়ছে।

ব্যাংকে সঞ্চয়পত্র কিনতে গ্রাহকদের ভিড়। ছবি: সাইফুল ইসলাম

২০২০-২১ অর্থবছরের নয় মাস (জুলাই-মার্চ) পার হয়ে গেলেও জাতীয় সঞ্চয় অধিদপ্তর জুলাই-ফেব্রুয়ারি সময়ের তথ্য প্রকাশ করেছে। তাতে দেখা যায়, এই আট মাসে সব মিলিয়ে ৭৫ হাজার ১০৩ কোটি ৪০ লাখ টাকার সঞ্চয়পত্র বিক্রি হয়েছে। গত ২০১৯-২০ অর্থবছরে মোট ৬৭ হাজার ১২৭ কোটি ৭৫ লাখ টাকার সঞ্চয়পত্র বিক্রি হয়েছিল। তার আগের অর্থাৎ ২০১৮-১৯ অর্থবছরে সঞ্চয়পত্রের মোট বিক্রির পরিমাণ ছিল ৯০ হাজার ৩৪২ কোটি ৩৯ লাখ টাকার সঞ্চয়পত্র, যা ছিল বাংলাদেশের ইতিহাসে এক অর্থবছরে সবচেয়ে বেশি বিক্রি।

আহসান মনসুর বলেন, ‘বিক্রি যেভাবে বাড়ছে, এটা অব্যাহত থাকলে অর্থবছর শেষে এবার মোট বিক্রি লাখ কোটি টাকা ছাড়িয়ে যাবে।’

সঞ্চয় অধিদপ্তরের তথ্য ঘেঁটে দেখা যায়, চলতি অর্থবছরের প্রথম মাস জুলাইয়ে ৮ হাজার ৭০৫ কোটি ৬২ লাখ টাকার বিভিন্ন ধরনের সঞ্চয়পত্র বিক্রি হয়। আগস্টে বিক্রি হয় ৮ হাজার ৮৫২ কোটি ২৯ লাখ টাকা। সেপ্টেম্বরে তা বেড়ে ১০ হাজার ৩৮৭ কোটি ৬২ লাখ টাকায় ওঠে।

এর পরের তিন মাস অক্টোবর, নভেম্বর ও ডিসেম্বরে বিক্রি হয় যথাক্রমে ৯ হাজার ২৪৯ কোটি ৮৬ লাখ, ৯ হাজার ৫৪৭ কোটি ৬২ লাখ এবং ৮ হাজার ২৩৩ কোটি ১৭ লাখ টাকার।

জানুয়ারিতে বিক্রি হয় ১০ হাজার ৬৪৪ কোটি ৮৬ লাখ টাকার সঞ্চয়পত্র, এক মাসের হিসাবে যা ছিল এ যাবৎকালের সবচেয়ে বেশি বিক্রি।

সর্বশেষ ফেব্রুয়ারি মাসে বিক্রি হয়েছে ৯ হাজার ৪৮২ কোটি ৩৫ লাখ টাকার।

তথ্য বিশ্লেষণে দেখা যায়, অর্থবছরের এই আট মাসে (জুলাই-ফেব্রুয়ারি) সঞ্চয়পত্রের নিট বিক্রির পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ২৯ হাজার ৩১১ কোটি ৩৮ লাখ টাকা, যা গত অর্থবছরের একই সময়ের চেয়ে তিন গুণের বেশি।

২০১৯-২০ অর্থবছরের জুলাই-ফেব্রুয়ারি সময়ে নিট বিক্রির পরিমাণ ছিল ৯ হাজার ৬৬৫ কোটি ৮৮ লাখ টাকা।

আগে বিক্রি হওয়া সঞ্চয়পত্রের সুদ-আসল পরিশোধের পর যেটা অবশিষ্ট থাকে, তাকে বলা হয় নিট বিক্রি। ওই অর্থ সরকারের কোষাগারে জমা থাকে এবং সরকার তা রাষ্ট্রীয় কর্মসূচি বাস্তবায়নে কাজে লাগায়। বিনিময়ে সঞ্চয়পত্রের গ্রাহকদের প্রতি মাসে সুদ দিতে হয়। এ কারণে অর্থনীতির পরিভাষায় সঞ্চয়পত্রের নিট বিক্রিকে সরকারের ‘ঋণ’ বা ‘ধার’ হিসেবে গণ্য করা হয়।

সঞ্চয় অধিদপ্তর ২০২০-২১ অর্থবছরে সঞ্চয়পত্র বিক্রির মোট লক্ষ্য ধরেছে ৮৬ হাজার ৬৮৫ কোটি টাকা। এর মধ্যে সুদ-আসল বাবদ শোধ করতে হবে ৬৬ হাজার ২৫৫ কোটি টাকা। নিট বিক্রির পরিমাণ দাঁড়াবে ২০ হাজার ৪৩০ কোটি টাকা।

অর্থাৎ বাজেট ঘাটতি মেটাতে সরকার এই ২০ হাজার ৪৩০ কোটি টাকা সঞ্চয়পত্র থেকে ঋণ নেবে।

হিসাব-নিকাশ করে দেখা যাচ্ছে, বাজেট ঘাটতি মেটাতে সরকার চলতি অর্থবছরে সঞ্চয়পত্র থেকে যে টাকা ঋণ নেয়ার লক্ষ্য ধরেছিল, তার ৪৩ দশমিক ৪৭ শতাংশ বেশি ঋণ আট মাসেই নিয়ে ফেলেছে।

২০১৯-২০ অর্থবছরে সঞ্চয়পত্র থেকে ২৭ হাজার কোটি টাকা ঋণ নেয়ার লক্ষ্য ধরেছিল সরকার। বিক্রি কমায় বছরের মাঝামাঝিতে এসে সেই লক্ষ্য কমিয়ে ১১ হাজার ৯২৪ কোটি টাকায় নামিয়ে আনা হয়।

কিন্তু গত অর্থবছরের শেষ মাস জুনে হঠাৎ করেই বিক্রি বেড়ে যাওয়ায় সঞ্চয়পত্র থেকে সরকারের ঋণ গ্রহণের পরিমাণ অর্থবছর শেষে ১৪ হাজার ৪২৮ কোটি ৩৫ লাখ টাকায় গিয়ে ঠেকে।

কোভিড-১৯ মহামারির ধাক্কা বাংলাদেশে লাগতে শুরু করার পর গত বছরের এপ্রিলে সঞ্চয়পত্রের বিক্রি তলানিতে নেমে আসে। ওই মাসে মোট ৬৬১ কোটি ৭৮ লাখ টাকার সঞ্চয়পত্র বিক্রি হয়েছিল। সুদ-আসল বাবদ শোধ করা হয় তার প্রায় দ্বিগুণ ১ হাজার ২৮৩ কোটি ৫৫ লাখ টাকা। নিট বিক্রি ছিল ৬২১ কোটি ৭৮ লাখ টাকা ঋণাত্মক (-)।

অর্থাৎ এপ্রিল মাসে যত টাকার সঞ্চয়পত্র বিক্রি হয়েছিল তার থেকে ৬২১ কোটি ৭৮ লাখ টাকা বেশি গ্রাহকদের সুদ-আসল বাবদে শোধ করা হয়েছিল।

মে মাসে ৩ হাজার ২২৬ কোটি ৯০ লাখ টাকার সঞ্চয়পত্র বিক্রি হয়। সুদ-আসল বাবদ শোধ করা হয় ২ হাজার ৭৯৬ কোটি ৬৭ লাখ টাকা। নিট বিক্রির পরিমাণ ছিল ৪৩০ কোটি ২৩ লাখ টাকা।

জুনে মোট বিক্রি মে মাসের চেয়ে প্রায় তিন গুণ বেড়ে ৯ হাজার ৩২২ কোটি ৮০ লাখ টাকায় দাঁড়ায়।

আরও পড়ুন:
গঙ্গা ব্যারাজ প্রকল্পে যুক্ত হচ্ছে ভারত: সচিব

শেয়ার করুন

বিমানের রুট বাড়াতে করোনার বাধা

বিমানের রুট বাড়াতে করোনার বাধা

ঢাকা থেকে জাপানের নারিতা হয়ে এশিয়া ও প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চল এবং কানাডার টরন্টো হয়ে উত্তর ও দক্ষিণ আমেরিকার দেশগুলোর সঙ্গে আকাশপথে যুক্ত হতে জাপান এয়ার এবং এয়ার কানাডার সঙ্গে চুক্তি করেছিল রাষ্ট্রীয় পতাকাবাহী প্রতিষ্ঠান বিমান। করোনার কারণে তা আটকে আছে।

কানাডার টরন্টো ও জাপানের নারিতা হয়ে উত্তর ও দক্ষিণ আমেরিকা এবং এশিয়া প্যাসিফিক অঞ্চলের সঙ্গে ঢাকাকে যুক্ত করার বিমানের পরিকল্পনা আপাতত বাস্তবায়ন করা যাচ্ছে না। বেসামরিক বিমান পরিবহন মন্ত্রণালয় বলছে, করোনা পরিস্থিতির কারণে বিমানের রুট সম্প্রসারণ পরিকল্পনা আপাতত আটকে আছে।

বেসামরিক বিমান পরিবহন প্রতিমন্ত্রী মো. মাহবুব আলী নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আমাদের প্রত্যাশা ছিল এই মার্চেই ঢাকা-টরন্টো ফ্লাইট শুরু করার। কিন্তু কোভিডের উপর সব কিছু নির্ভর করবে।’

একই পরিস্থিতি জাপানের নারিতা ও যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কে ফ্লাইট শুরুর ক্ষেত্রেও।

ঢাকা থেকে জাপানের নারিতা হয়ে এশিয়া ও প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চল এবং কানাডার টরন্টো হয়ে উত্তর ও দক্ষিণ আমেরিকার দেশগুলোর সঙ্গে আকাশপথে যুক্ত হতে জাপান এয়ার এবং এয়ার কানাডার সঙ্গে চুক্তিও করে রাষ্ট্রীয় পতাকাবাহী প্রতিষ্ঠান বিমান।

ফলে বিমানের ফ্লাইটে টিকিট কেটে ঢাকা থেকে যাওয়া যাবে অস্ট্রেলিয়া-নিউজিল্যান্ড কিংবা যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কসহ যে কোনো গন্তব্যে। কিন্তু করোনা পরিস্থিতির উন্নতি না হওয়ায় সে সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন করা যাচ্ছে না।

এভিয়েশনের পরিভাষায় এয়ারলাইন্সগুলোর এ ধরনের জোটকে বলা হয় কোড শেয়ার। দুটি এয়ারলাইন্সের মধ্যে এ ধরনের চুক্তি থাকলে একজন যাত্রী কোনো একটি এয়ারলাইন্সের টিকিট কেটেই অন্য এয়ারলাইন্সের ফ্লাইটে নির্দিষ্ট গন্তব্যে যেতে পারেন।

কানাডার টরন্টো ও জাপানের নারিতা হয়ে উত্তর ও দক্ষিণ আমেরিকা এবং এশিয়া প্যাসিফিকের সঙ্গে ঢাকাকে যুক্ত করতে বিমানের পরিকল্পনা আপাতত হচ্ছে না। ফাইল ছবি

বিশ্বের বিভিন্ন এয়ারলাইন্স এ ধরনের চুক্তির ভিত্তিতে ফ্লাইট পরিচালনা করলেও বাংলাদেশ এই প্রথম এ ধরনের উদ্যোগ নিয়েছে।

বিমানের শীতকালীন ও আসন্ন গ্রীষ্মকালীন সূচিও সাজানো হয়েছিল এ পরিকল্পনাকে ভিত্তি করে। সম্ভাব্য যাত্রী হিসেবে ধরা হয়েছে দক্ষিণ এশিয়া ও মধ্য এশিয়ার বিভিন্ন গন্তব্যের যাত্রীদের।

বর্তমানে বিভিন্ন আন্তর্জাতিক গন্তব্যে পয়েন্ট টু পয়েন্ট সেবা দিয়ে থাকে বিমান। এক সময় অস্ট্রেলিয়ার সিডনি ও যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কে ফ্লাইট চলাচল করলেও এখন সেগুলো বন্ধ।

বিমানের বহরে লম্বা দূরত্বে উড়তে সক্ষম অন্তত ১০টি উড়োজাহাজ থাকলেও রুট না থাকায় দীর্ঘদিন ধরে সেগুলোর সক্ষমতার পুরোটা ব্যবহার করা যাচ্ছে না। এগুলোর মধ্যে রয়েছে ছয়টি বোয়িং সেভেন এইট সেভেন ও চারটি বোয়িং ট্রিপল সেভেন মডেলের উড়োজাহাজ। এর প্রত্যেকটি টানা ১৬ ঘণ্টা উড়তে সক্ষম।

লম্বা দূরুত্বের মধ্যে বর্তমানে ফ্লাইট চালু রয়েছে শুধু লন্ডন রুটে। এ রুটে সরাসরি যেতে সময় লাগে প্রায় ১১ ঘণ্টা।

ঢাকা থেকে সরাসরি আকাশপথে নারিতা যেতে সময় লাগে প্রায় সাড়ে ৮ ঘণ্টা। আর সরাসরি টরন্টো যেতে সময় লাগে প্রায় ১৪ ঘণ্টা। নতুন এ রুট দুটি চালু হলে উড়োজাহাজগুলোর সক্ষমতা ব্যবহার করা যাবে বলে মনে করছেন বিমান কর্মকর্তারা।

বিমানের পরিকল্পনা অনুযায়ী, একজন যাত্রী ঢাকা থেকে নারিতা বা টরন্টো যাবেন বিমানের ফ্লাইটে। এরপর সেখান থেকে জাপান এয়ার বা এয়ার কানাডার ফ্লাইটে যাবেন তার পছন্দের গন্তব্যে। যাত্রী যে গন্তব্যে যাবেন, তার টিকিটও সংগ্রহ করবেন বিমানের কাছ থেকেই।

বিমান প্রতিমন্ত্রী মাহবুব আলী বলেন, ‘কানাডার একটি প্রতিনিধি দল এখানে এসে পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণের কথা আছে। আমরা জাপানের সাথে আবার ফ্লাইট শুরু করার সব কিছুই সম্পন্ন করে রেখেছি। কিন্তু কোভিডের কারণে তাদের ফ্লাইট চলাচলে কিছু বিধিনিষেধ আরোপ করা আছে।

‘এটা উঠে গেলে আমরা সেখানে ফ্লাইট শুরু করব। নিউইয়র্কে ফ্লাইট চালুর বিষয়েও আমাদের সব প্রস্তুতি নেয়া আছে। যুক্তরাষ্ট্র থেকে ফেডারেল এভিয়েশন অথরিটির (এফএএ) একটি টিম আসার কথা, কোভিডের কারণে সেটিও দেরি হচ্ছে। এর বাইরেও গোয়াংজু ও চেন্নাইয়ে ফ্লাইট চালু করার কথা। গুয়াংজুতে যদিও আমরা কার্গো ফ্লাইট করছি, কিন্তু কোভিডের কারণে যাত্রী পরিবহন শুরু করা যায়নি।’

তিনি বলেন, ‘টরন্টো থেকে যে প্রতিনিধি দল আসার কথা, তারা হয়ত এর মধ্যেই চলে আসত। কিছুদিন আগেও সংক্রমণ কম ছিল, এখন আবার সংক্রমণ বেশি। এটার উপরও নির্ভর করছে।

‘জাপানের ক্ষেত্রে সব অনুমোদন হয়ে আছে। আমরা ফিফথ ফ্রিডমও পেয়েছি। অর্থাৎ মধ্যে কোনো একটা স্টেশনেও আমরা ফ্লাইট চালাতে পারব- এভাবেই অনুমোদন নেয়া আছে। কিন্তু তাদের যে বিধিনিষেধ রয়েছে, এটা শুধু আমাদের জন্য না, সবার জন্যেই। এটা তারা তুলে নিলে আমরা আবার ফ্লাইট শুরু করতে পারব।’

ঢাকা থেকে যে এয়ারলাইন্সগুলো নিয়মিত আন্তর্জাতিক ফ্লাইট পরিচালনা করে, তারা সাধারণত মধ্যপ্রাচ্য, মধ্য এশিয়া ও ইউরোপের বিভিন্ন বিমানবন্দরে ট্রানজিট দিয়ে যাত্রী পরিবহন করে। এতে অনেক সময় যাত্রীদের গন্তব্যে পৌঁছাতে সময় লাগে অনেক বেশি।

কোনো এয়ারলাইন্সেরই ঢাকা থেকে সরাসরি টরন্টোতে ফ্লাইট নেই। বিমান আশা করছে, নারিতা ও টরন্টোতে ফ্লাইট শুরু করলে মধ্যপ্রাচ্য, মধ্য এশিয়া ও দক্ষিণ এশিয়ার অনেক আন্তর্জাতিক যাত্রী তারা পাবে। তবে এখন সব কিছুই নির্ভর করছে করোনা পরিস্থিতির ওপর।

আরও পড়ুন:
গঙ্গা ব্যারাজ প্রকল্পে যুক্ত হচ্ছে ভারত: সচিব

শেয়ার করুন

চার নারীর ভাইরাল ছবিটি মুক্তিযুদ্ধের নয়

চার নারীর ভাইরাল ছবিটি মুক্তিযুদ্ধের নয়

প্রথম ছবিটি ১৯৭১ সালে তোলা দাবি করে সামাজিক মাধ্যমে ভাইরাল করা হয়েছে। পরের ছবিটি সাম্প্রতিক তোলা। ছবি: সংগৃহিত

নিউজবাংলার অনুসন্ধানে দেখা গেছে, পুরোনো ছবিটি ‍মুক্তিযুদ্ধের সময়ের বলে প্রচার করা হলেও এর কোনো সত্যতা নেই। সম্পূর্ণ পারিবারিক একটি ছবিকে কোনো যাচাই-বাছাই ছাড়াই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল করা হয়েছে।

চার নারী একটি খোলা জিপে বসে আছেন। একজন স্টিয়ারিং ধরে চালকের আসনে, বাকি তিনজনের হাতে বন্দুক। মধ্যবয়সী এই চার নারীর পুরোনো দিনে তোলা ছবির পাশাপাশি ঠিক একই ভঙ্গীতে সাম্প্রতিক সময়ে তোলা আরও একটি ছবি ভাইরাল হয়েছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে।

বিভিন্ন পোস্টে দাবি করা হয়েছে, এই চার নারী পরস্পরের বান্ধবী এবং তারা চারজনই মুক্তিযোদ্ধা। ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধের সময়ে তোলা হয় প্রথম ছবিটি, আর পরের ছবিটি স্বাধীনতার ৫০ বছর পর তোলা হয়েছে একই ভঙ্গীতে।

ছবিটি নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়ানো বক্তব্যের সত্যতা যাচাই করেছে নিউজবাংলা। এতে দেখা গেছে, পুরোনো ছবিটি ‍মুক্তিযুদ্ধের সময়ের বলে প্রচার করা হলেও এর কোনো সত্যতা নেই। সম্পূর্ণ পারিবারিক একটি ছবিকে কোনো যাচাই-বাছাই ছাড়াই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল করা হয়েছে।

নিউজবাংলা কথা বলেছে ওই চার নারীর স্বজনদের সঙ্গে। এতে জানা গেছে, গাড়িতে থাকা চারজনের মধ্যে স্টিয়ারিং ধরা নারীর নাম আয়েশা আহমেদ। আয়েশার ডান পাশে বসা নারী রোকেয়া আহমেদ, আর পেছনের সিটে বসা দুজনের নাম রাশিদা আহমেদ ও শাহানারা আহমেদ।

এই চার নারীই ১৯৬০ এর দশকে ঢাকার এক বনেদি পরিবারের সদস্য ছিলেন। প্রথম ছবিটি তোলা হয় ১৯৬০ এর দশকের একদম শুরুর দিকে খুলনায়, আর একই আঙ্গিকে ২০১৭ সালে ঢাকায় তোলা হয় পরের ছবিটি।

১৯৬০ এর দশকে তোলা হয় ওপরের ছবিটি, নিচেরটি তোলা ২০১৭ সালে

রোকেয়া আহমেদের পুত্রবধূ রিফাত আহমেদ কথা বলেছেন নিউজবাংলার সঙ্গে। রাজধানীর সিদ্দিকস ইন্টারন্যাশনাল স্কুলের চেয়ারম্যান রিফাত আহমেদ জানান, গাড়িতে বসা চার নারীর স্বামী ও ভাইয়েরা ষাটের দশকের শুরুতে খুলনা অঞ্চলে শিকার করতে গিয়েছিলেন। শিকার শেষে তারা ফেরার পর রান্নাবান্না শেষে এই চার নারী গাড়িটিতে বসে ছবিটি তুলেছিলেন।

পুরনো ছবিটি তোলেন রিফাত আহমেদের শ্বশুর তখনকার ধনাঢ্য ব্যবসায়ী ও সৌখিন ফটোগ্রাফার আলাউদ্দিন আহমেদ। আর ২০১৭ সালে আবার ওই চার জনের ছবি তোলেন স্বামী আমিন উদ্দিন আহমেদ।

একই গাড়িতে অন্য ভঙ্গিতে চার নারীর ছবি

রিফাত আহমেদ নিউজবাংলাকে জানান, তার শ্বশুর আলাউদ্দিন আহমেদের বাবা ও তার দুই বন্ধু দেশভাগের পর ভারতে তাদের ব্যবসা গুটিয়ে পূর্ব পাকিস্তানে চলে আসেন। তাদের আদি বাড়ি মানিকগঞ্জে। দেশে ফেরার পর তারা নৌপরিবহন ব্যবসা শুরু করেন। মুক্তিযুদ্ধের আগে তাদের পাক ওয়াটার ওয়েজ, বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার যার নাম হয় বেঙ্গল ওয়াটার ওয়েজ। পরে সেই ব্যবসায় আলাউদ্দিন আহমেদ ও তার ভাইয়েরাও যুক্ত হন।

অবসরে আলাউদ্দিন আহমেদ ও তার পরিবারের সদস্যরা একসঙ্গে শিকারে যেতেন। তেমনিভাবে ১৯৬১/৬২ সালের দিকে তারা শিকারে গিয়েছিলেন খুলনায়। আলাউদ্দিন আহমেদ শিকার শেষে ফিরে আসার পর স্ত্রী, দুই ভাবি ও বোনকে একটি গাড়িতে বসিয়ে বন্দুক হাতে ছবি তুলে দেন।

এরপর ২০১৭ সালে এই চারজনকে নিয়ে একই ভঙ্গিমায় ছবি তোলা হয়। তখন উপলক্ষ্য ছিল রিফাত আহমেদের বড় ছেলে রিনান আহমেদের বিয়ে। রিফাত আহমেদ নিউজবাংলাকে জানান, বিয়ে উপলক্ষে পারিবারিক পুরনো ছবিগুলো রিপ্রিন্ট করে সাজানো হয়। বিয়েতে দেশ ও বিদেশের আত্মীয়রা উপস্থিত হয়েছিলেন। বর্তমানে ইংল্যান্ডে বসবাস করা আয়েশাও বিয়েতে এসেছিলেন।

রিফাত আহমেদ বলেন, ‘বিয়ের পরপরই, সবগুলো মানুষ যেহেতু আছে, তাদের নিয়ে আবার ছবিটি উঠানো হয। আগের বন্দুকগুলো না থাকলেও নতুন ছবির বন্দুকগুলো ছিল কাছাকাছি। তবে গাড়িটা একই।’

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময়কার উইলিস মডেলের গাড়িটি এখনও আমিন উদ্দিন আহমেদের পরিবারের সংগ্রহে রয়েছে।

আলোচিত চার নারীর প্রথম ছবিটি তোলেন তখনকার ধনাঢ্য ব্যবসায়ী ও সৌখিন ফটোগ্রাফার আলাউদ্দিন আহমেদ।

পুরনো ও নতুন ছবি দুটি একসঙ্গে রেখে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে পোস্ট করেন আমিন উদ্দিন আহমেদের বড় ছেলে রিনান আহমেদ। কয়েক বছর আগে তিনি ছবি দুটি ফেসবুকের বিভিন্ন গ্রুপে পোস্ট করেছিলেন। তবে সেই ভিত্তিহীন লেবেলে ভাইরাল হয় এ বছর।

মিথ্যে তথ্য দিয়ে ছবিটি প্রচারে অস্বস্তিতি রিফাত আহমেদ। তিনি বলেন, ‘মিথ্যা তথ্য দিয়ে ছবিটি প্রচার হচ্ছে দেখে আমাদের খারাপ লাগছে। ছবিটিকে আমাদের মুক্তিযুদ্ধের সঙ্গে রিলেট করা হচ্ছে। আমরা মহান মুক্তিযুদ্ধকে মিথ্যা কিছু দিয়ে চিত্রায়িত করতে চাই না। ’

এ ছবির চার নারীর মধ্যে রোকেয়া আহমেদ ও রাশিদা আহমেদ মারা গেছেন করোনা মহামারির মধ্যে। বাকি দুজনের একজন দেশে ও অপরজন ইংল্যান্ডে আছেন।

আরও পড়ুন:
গঙ্গা ব্যারাজ প্রকল্পে যুক্ত হচ্ছে ভারত: সচিব

শেয়ার করুন

পাহাড়ে আঞ্চলিক দলের সংঘাতে ১৫ মাসে ৪২ খুন

পাহাড়ে আঞ্চলিক দলের সংঘাতে ১৫ মাসে ৪২ খুন

ইউপি সদস্য সমর বিজয় চাকমাকে পিআইও অফিসে ঢুকে গুলি করে হত্যা করা হয়। ছবি: নিউজবাংলা

২০২০ সাল থেকে ২০২১ সালের মার্চ পর্যন্ত পার্বত্য চট্টগ্রামের তিন জেলায় এ ধরনের সংঘাতে অন্তত ৪২ জনের প্রাণ গেছে। আঞ্চলিক দলগুলোর স্বার্থের দ্বন্দ্ব, চাঁদা আদায়, ভাগ-বাঁটোয়ারাকেই সংঘাত-হানাহানির মূল কারণ বলে মনে করেন এলাকার লোকজন।

বান্দরবানের বাঘমারায় গত বছরের ৭ জুলাই দুই গ্রুপের গোলাগুলিতে ছয়জন নিহত হন। পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতির (জেএসএস) দুটি পক্ষের মধ্যে এই গোলাগুলি হয়েছিল।

পাহাড়ের দায়িত্বরত নিরাপত্তা বাহিনী ও সেখানে সংঘাতের ঘটনাগুলো পর্যবেক্ষণ করে এমন বিভিন্ন সংস্থার তথ্য অনুযায়ী, ২০২০ সাল থেকে ২০২১ সালের মার্চ পর্যন্ত পার্বত্য চট্টগ্রামের তিন জেলায় এ ধরনের সংঘাতে অন্তত ৪২ জনের প্রাণ গেছে।

গেল ১৫ মাসে সবচেয়ে বেশি প্রাণহানি হয়েছে রাঙামাটিতে। ২০২০ সাল থেকে ২০২১ সালের মার্চ পর্যন্ত রাঙামাটিতে সংঘাতে প্রাণ হারিয়েছেন অন্তত ২৬ জন। এর মধ্যে ২০২০ সালে প্রাণ হারান ২০ জন। আরেক পাহাড়ি জেলা বান্দরবানে গত ১৪ মাসে ১১ প্রাণহানির ঘটনা ঘটেছে। খাগড়াছড়িতে মারা গেছেন পাঁচজন।

পাহাড়ের বাসিন্দা ও নিরাপত্তা বাহিনী মনে করছে, অনৈতিক কার্যকলাপের নিয়ন্ত্রণ নিয়ে পার্বত্য চট্টগ্রামের আঞ্চলিক দলগুলোর মধ্যে সংঘাত, হানাহানি বেড়েই চলেছে। আঞ্চলিক দলগুলোর স্বার্থের দ্বন্দ্ব, চাঁদা আদায়, ভাগ-বাঁটোয়ারাকেই সংঘাত-হানাহানির মূল কারণ বলে মনে করেন এলাকার লোকজন।

আরও পড়ুন: পাহাড়ে শান্তি নিশ্চিতে পরিত্যক্ত সেনাক্যাম্পে পুলিশ


নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক রাঙামাটির নানিয়ারচর বাজারের এক বাসিন্দা নিউজবাংলাকে বলেন, ‘পৃথক চারটি ধারার রাজনীতির কাছে আমরা জিম্মি। একটি দলের পক্ষে অবস্থান নিলে অন্য পক্ষগুলো ক্ষুব্ধ হয়। প্রায়ই আমাদের আঞ্চলিক রাজনৈতিক দলের বিচারের মুখোমুখি হতে হয়। প্রতিবাদ করলে বা নীরব থাকলেও খুন, গুম বা অপহরণ হতে হয়।’

তবে আঞ্চলিক দলগুলোর নেতারা বলছেন, পার্বত্য চুক্তি বাস্তবায়িত না হওয়ায় পাহাড়ে বসবাসরত ক্ষুদ্র জাতিসত্তার মানুষের হতাশা থেকে এ অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে।

পার্বত্য চট্টগাম জনসংহতি সমিতির (জেএসএস) নেতা ত্রিদিব চাকমা নিউজবাংলাকে বলেন, ‘শান্তি চুক্তি বাস্তবায়ন না হলে পার্বত্য এলাকায় সমস্যা সমাধান হবে না। পার্বত্য অঞ্চলের সমস্যা সমাধানের জন্যই চুক্তি হয়েছিল, কিন্তু ২২ বছর হতে চললেও চুক্তির মৌলিক বিষয়গুলো বাস্তবায়িত হয়নি।’

বুধবার গুলিতে নিহত সংস্কারবাদী জেএসএসের সামরিক কমান্ডার বিশ্বমিত্র চাকমা

উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতির (জেএসএস লারমা) কেন্দ্রীয় কমিটির আইন বিষয়ক সম্পাদক সুদর্শন চাকমা বলেন, ‘পাহাড়ে কোনো হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে আমাদের দল জড়িত ছিল না। চুক্তি বাস্তবায়নের জন্য আমরা গণতান্ত্রিক আন্দোলন করে যাচ্ছি। চুক্তি বাস্তবায়ন হলে যাদের বেশি ক্ষতি হবে তারাই চুক্তি বাস্তবায়নে বাধা তৈরি করছে। আমরাও চাই পাহাড়ে শান্তিপূর্ণ অবস্থা থাকুক। সবাই নিরাপদে শান্তিতে বসবাস করুক।’

ইউপিডিএফের সংগঠক অংগ মারমা নিউজবাংলাকে বলেন, ‘পাহাড়ে অশান্তির মূল কারণ পার্বত্য চুক্তি বাস্তবায়িত না হওয়া। চুক্তি বাস্তবায়নে যেসব কথা বলা হয়েছে সেগুলো ন্যূনতম বাস্তবায়ন হয়নি। এ জন্য এই অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে।’

সংঘাতের কারণ জানতে চাইলে ইউপিডিএফ গণতান্ত্রিকের সভাপতি শ্যামল কান্তি চাকমা বলেন, ‘প্রসীত খীসার ইউপিডিএফের জন্য আজ পাহাড়ে এত সংঘাত। তারা তখন চুক্তির বিরোধিতা না করলে হয়তো পাহাড়ে আজ চারটি আঞ্চলিক সংগঠন হতো না। পাহাড়ে রক্তপাত বন্ধ হোক, এটা আমরা সব সময় চাই।’

পাহাড়ের রাজনীতির মারপ্যাঁচ

পাহাড়ে একসময় জনসংহতি সমিতি (জেএসএস) নামে একটিমাত্র আঞ্চলিক দল ছিল। এই দলের সঙ্গেই ১৯৯৭ সালে পার্বত্য চুক্তি করেছিল সরকার। চুক্তির বিরোধিতা করে প্রথমে একটি অংশ জেএসএস থেকে বেরিয়ে ১৯৯৮ সালে ইউনাইটেড পিপলস ডেমোক্রেটিক ফ্রন্ট (ইউপিডিএফ) নামে নতুন দল করে। পরে জেএসএস ভেঙে জেএসএস (সংস্কারপন্থি) নামে ২০০৭ সালে আরেকটি দল হয়েছে। অন্যদিকে ২০১৭ সালে ইউপিডিএফ ভেঙে ইউপিডিএফ-গণতান্ত্রিক নামে নতুন দল হয়।

আরও পড়ুন: সংস্কারবাদী জেএসএসের সামরিক কমান্ডার নিহত


পার্বত্য চুক্তির এক বছরের মধ্যেই চুক্তির পক্ষের জনসংহতি সমিতির (জেএসএস) সঙ্গে ইউপিডিএফের রক্তক্ষয়ী সংঘাত শুরু হয়। ২০০৭ সালে জনসংহতি সমিতি ভেঙে গঠিত হয় জনসংহতি সমিতি (লারমা) বা জেএসএস (লারমা) নামের নতুন দল। ২০১৭ সালে খাগড়াছড়িতে ইউপিডিএফের মধ্যে ভাঙন সৃষ্টি হয়। ওই বছরের ১৫ নভেম্বর তপনজ্যোতি চাকমার নেতৃত্বে ইউপিডিএফ গণতান্ত্রিক নামের নতুন দলের আত্মপ্রকাশ ঘটে।

পার্বত্য চট্টগ্রামে এই চারটি গ্রুপের বাইরেও আরও কয়েকটি গ্রুপ সক্রিয় রয়েছে। এর মধ্যে একটি হচ্ছে আরাকান লিবারেশন পার্টি (এএলপি)। এই দলের সদস্যদের অবস্থান বান্দরবানের গহিনে। ২০১৮ সালে এএলপি ভেঙে গঠিত হয় মগ পার্টি। তাদের অবস্থানও বান্দরবানে। তবে এই দুই দলের অবস্থান শুধু বান্দরবানে, রাঙামাটি কিংবা খাগড়াছড়িতে এদের কোনো তৎপরতা নেই।

কার শক্তি কোথায়?

পার্বত্য চট্টগ্রামের রাজনীতির যে চারটি গ্রুপ রয়েছে, সেগুলোর একেকটি শক্ত অবস্থান একেক জায়গায়। এর মধ্যে খাগড়াছড়িতে ইউপিডিএফের দুটি অংশের তৎপরতা সবচেয়ে বেশি। খাগড়াছড়ির স্থানীয় বাসিন্দা ও পাহাড়ের নিরাপত্তা বাহিনীর সূত্রগুলো বলছে, খাগড়াছড়িতে ইউপিডিএফের শক্ত অবস্থান রয়েছে। অন্যদিকে বান্দরবানে জেএসএসের দুইটি অংশের তৎপরতা সবচেয়ে বেশি। সেখানে জেএসএস শক্তিশালী। বান্দরবানের ইউপিডিএফের তৎপরতা নেই বললে চলে। আর রাঙামাটিতে জেএসএস এবং ইউপিডিএফের চার পক্ষই শক্তিশালী।

আরও পড়ুন:
গঙ্গা ব্যারাজ প্রকল্পে যুক্ত হচ্ছে ভারত: সচিব

শেয়ার করুন