বনের চারপাশে ৭০০ অবৈধ করাতকল

বনের চারপাশে ৭০০ অবৈধ করাতকল

সংরক্ষিত বনের ১০ কিলোমিটারের মধ্যে করাতকল স্থাপনের নিয়ম নেই। অথচ চট্টগ্রাম অঞ্চলের আটটি বন ঘেঁষে গড়ে উঠেছে অবৈধ করাতকল। এগুলোয় অবাধে বনাঞ্চলের গাছ চেরানো হচ্ছে।

কক্সবাজারের মহেশখালী এলাকার শাহ আমানত করাতকলে চলতি বছরের ১৩ জানুয়ারি অভিযান চালায় বন বিভাগ। এ সময় ওই করাতকল থেকে সংরক্ষিত বনের প্রায় ৪০ ঘনফুট কাঠ উদ্ধার করা হয়।

বনবিভাগের তথ্য অনুযায়ী, মহেশখালী উপজেলার ২৯টি করাতকলের মধ্যে ২৪টির অবস্থান বনের পাঁচশ মিটার থেকে দুই কিলোমিটারের মধ্যে।

করাতকল বিধিমালা অনুযায়ী, সংরক্ষিত বনের ১০ কিলোমিটারের মধ্যে করাতকল স্থাপনের নিয়ম না থাকলেও মহেশখালীতে এই নিয়ম মানা হচ্ছে না। বনের কাছে ও বন ঘেঁষে গড়ে ওঠা অবৈধ এসব করাতকলে অবাধে বনাঞ্চলের গাছ চেরানো হচ্ছে বলে অভিযোগ আছে বনবিভাগের কাছে।

শুধু মহেশখালীতে নয়, চট্টগ্রাম বন বিভাগের হালনাগাদ তথ্য অনুযায়ী, চট্টগ্রাম অঞ্চলের আটটি বন বিভাগে মোট করাতকল আছে ১ হাজার ২০০টি। এর মধ্যে বন বিভাগের নিবন্ধন রয়েছে ৪৯৫টির। বাকি ৭০৫টি অবৈধ।

করাতকল বিধিমালা, ২০১২-এ বলা আছে, কোনো সরকারি অফিস-আদালত, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, হাসপাতাল, স্বাস্থ্যকেন্দ্র, ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান, বিনোদন পার্ক, উদ্যান এবং জনস্বাস্থ্য বা পরিবেশের জন্য সমস্যা সৃষ্টি করে এমন স্থান থেকে কমপক্ষে ২০০ মিটার এবং সরকারি বনভূমির সীমানা থেকে কমপক্ষে ১০ কিলোমিটারের মধ্যে করাতকল স্থাপন করা যাবে না। তবে এই নিদের্শনা কেউ মানছে না। যত্রতত্র বসানো হয়েছে করাতকল। আর এসব কলে চেরাই হচ্ছে বনের কাঠ।

বনের চারপাশে ৭০০ অবৈধ করাতকল
অবৈধ করাতকলে বন বিভাগের অভিযান: ছবি: নিউজবাংলা

বন বিভাগ ও পরিবেশ বিশেষজ্ঞরা বনের মধ্যে এই করাতকল স্থাপনের ব্যাপারে আপত্তি তুলেছেন। তারা বনের আশপাশের করাতকল বন্ধের দাবি তুলেছেন।

এই পরিস্থিতিতে ২১ মার্চ সারাদেশে পালিত হচ্ছে আন্তর্জাতিক বন দিবস।

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ইনস্টিটিউট অব ফরেস্ট্রি অ্যান্ড এনভায়রনমেন্টাল সায়েন্সেজের অধ্যাপক কামাল হোসেন বলেন, ‘বনের কাছে ও ঘেঁষে অবৈধ এসব করাতকল কেন তৈরি হয়েছে, তা সবার জানা। প্রশাসনের চোখ ফাঁকি দিয়ে কিছু ব্যবসায়ী অতিরিক্ত মুনাফার লোভে বনের কাঠ চেরাই করছে এসব করাতকলে। অবাধে বনাঞ্চলের গাছ এভাবে চেরানো হলে বন ধ্বংস হতে বেশি সময় লাগবে না।’

চট্টগ্রাম বন অঞ্চলের মধ্যে সবচেয়ে বেশি করাতকল আছে চট্টগ্রাম উত্তর বন বিভাগে। এ বিভাগের করাতকল আছে ৪৯৬টি, যার মধ্যে নিবন্ধন আছে ১৯৯টির।

চট্টগ্রাম দক্ষিণ বন বিভাগের আওতাধীন এলাকায় করাতকল ৪০২টি। এর মধ্যে নিবন্ধন আছে ২২০টির। অন্যদিকে উপকূলীয় বনাঞ্চলে গড়ে ওঠা ৭২টি করাতকলের মধ্যে ৬১টি অবৈধ।

কক্সবাজারে উত্তর বন বিভাগের আওতাধীন এলাকায় করাতকল আছে ৯৯টি। এর মধ্যে ৮৯টিই অবৈধ। কক্সবাজার দক্ষিণ বন বিভাগের আওতাধীন এলাকায় বৈধ করাতকল আছে মাত্র ১০টি। এ এলাকায় অবৈধ করাতকল আছে ৫৯টি। এছাড়া লামা বন বিভাগের আওতাধীন এলাকায় গড়ে ওঠা ৪১টি করাতকলের মধ্যে ১৭টিই অবৈধ।

বনের চারপাশে ৭০০ অবৈধ করাতকল
তথ্য পেলে অভিযান চালিয়ে পাচারের জন্য নেয়া কাঠ উদ্ধারে যায় বন বিভাগ। ছবি: নিউজবাংলা

চট্টগ্রামের বন সংরক্ষক মোহাম্মদ আবদুল আউয়াল সরকার জানান, ‘বনের মধ্যে অনেক করাতকল গড়ে উঠেছে এমন তথ্য আমাদেরও আছে। তবে এসব করাতকল মালিক হাইকোর্টে রিট করে রেখেছে। যার কারণে আমরা উচ্ছেদ করতে পারি না।’

তিনি আরও বলেন, ‘বনের কাঠ পাচার হয়ে অনেক সময় করাতকলে যায়। আমরা তথ্য পাই। তখন আমরা অভিযান পরিচালনা করি। তবে করোনার কারণে গত এক বছর ধরে অভিযান কম হচ্ছে। এখন আবার কোভিড-১৯ বাড়ছে। এ জন্য কাঠ পাচার বেড়েছে। তবু আমরা অভিযান চালিয়ে অবৈধ করাতগুলো উচ্ছেদ করছি।’

চট্টগ্রাম, বান্দরবান ও কক্সবাজার জেলা মিলে চট্টগ্রাম বনাঞ্চল। এই বনাঞ্চলের অধীনে ১০টি বিভাগ রয়েছে। এর মধ্যে বন ব্যবহারিক বিভাগের অধীনে কোনো বনাঞ্চল নেই। বাকি নয়টি বিভাগের আওতাধীন বনাঞ্চলের পরিমাণ ৮ লাখ ৬৩ হাজার ২৫৬ একর।

আরও পড়ুন:
পরিবেশ সুরক্ষায় কাজ করবে বাংলাদেশ ও সুইডেন
‘পরিবেশগত অপরাধ নিয়ে ভাবতে হবে’
ছয় ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠান পাচ্ছে জাতীয় পরিবেশ পদক
কার্বন নিঃসরণে ঘনিয়ে আসছে ভয়াবহ এক দুর্যোগ
প্রচার সম্ভাব্য প্রার্থীদের, পেরেকে কষ্ট গাছের

শেয়ার করুন

মন্তব্য