আইপিও বাড়লে আরও গতি আসবে পুঁজিবাজারে

আইপিও বাড়লে আরও গতি আসবে পুঁজিবাজারে

এখন আইপিও দ্রুত অনুমোদন পাচ্ছে। ফলে কোনো সমস্যা হচ্ছে না। বাজার বড় হলে আইপিও কোনো বিষয় না। আইপিও হচ্ছে বাজারের প্রাণ। আইপিও বাড়লে নতুন বিনিয়োগকারী আসবে, নতুন ফান্ড তৈরি হবে। বাজারের গতিশীলতা বাড়াবে।

বাংলাদেশ মার্চেন্ট ব্যাংকার্স অ্যাসোসিয়েশনের (বিএমবিএ) সভাপতি ছায়েদুর রহমান মনে করছেন, প্রাথমিক গণপ্রস্তাব–আইপিওতে যত বেশি কোম্পানি আসবে বিনিয়োগকারীদের তত বেশি অংশগ্রহণ বাড়বে পুঁজিবাজারে। বাড়বে বাজারের গভীরতা।

তার মতে, আইপিও-ই হচ্ছে পুঁজিবাজারের প্রাণ, তবে মানসম্মত কোম্পানির আসতে হবে।

ছায়েদুর রহমান বলছেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দূরদর্শী সিদ্ধান্তের কারণেই গতিশীলতা ফিরেছে পুঁজিবাজারে। কমিশন পুনর্গঠন হওয়ার পর বেশ কিছু পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে। এর ইতিবাচক প্রভাব পুঁজিবাজারে পড়েছে। অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল বাজেটে যে সুবিধা দিয়েছেন তার কারণেও তারল্য বেড়েছে পুঁজিবাজারে।

করোনা সংকটের মধ্যেও ঘুরে দাঁড়ানো পুঁজিবাজারের সার্বিক পরিস্থিতি নিয়ে নিউজবাংলার সঙ্গে খোলামেলা কথা বলেছেন বিএমবিএ সভাপতি। সাক্ষাৎকার নিয়েছেন সাখাওয়াত হোসেন সুমন।

পুঁজিবাজারে শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনতে কোন বিষয়গুলোতে প্রাধান্য দেয়া উচিত?

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন–বিএসইসি পুনর্গঠনে দূরদর্শিতার পরিচয় দিয়েছেন। পুঁজিবাজারে নেতৃত্ব যে কতটা গুরুত্বপূর্ণ তা বিএসইসির এই পুনর্গঠিত কমিশনই প্রমাণ করেছে।

চেয়ারম্যান অধ্যাপক শিবলী রুবাইয়াত-উল-ইসলামের নেতৃত্বাধীন নতুন কমিশন পুঁজিবাজারের ভালো করার জন্য ধারাবাহিক যে চেষ্টা চালাচ্ছে- তার সুফল আমরা পাচ্ছি।

বিদায়ী বছরের শেষ দিনে প্রায় ১৫০০ কোটি টাকার লেনদেন হয়েছে। এ ধারাবাহিকতা চলমান থাকবে এবং ২০২১ সালে ২ হাজার কোটি টাকার নিয়মিত লেনদেন হবে বলে আশা করছি।

বাজার চাঙা করতে উল্লেখযোগ্য কিছু পদক্ষেপ নিয়েছে বিএসইসি। যেখানে অনিয়ম হয়েছে সেখানে কঠোর ব্যবস্থা নিয়েছে।

বাজার সম্প্রসারণে অনেক সুযোগ তৈরি করা হয়েছে। ব্রোকারেজ হাউজের শাখা চালু বহুদিন বন্ধ ছিল, সেগুলো ফের চালু করা হয়েছে। দেশের বাইরেসহ প্রত্যন্ত অঞ্চলে বুথ স্থাপনের সুযোগ দেয়া হয়েছে।

এগুলো বাজারের জন্য উল্লেখযোগ্য পদক্ষেপ। এখন ইচ্ছা করলে আমরা বিদেশে গিয়ে পুঁজিবাজারে অপারেট করতে পারব। এরই মধ্যে একটি প্রতিষ্ঠান দুবাইতে ডিজিটাল আউটলেট চালুর উদ্যোগ নিয়েছে। পরবর্তীতে বড় বড় হাউজগুলো এগিয়ে আসবে। এতে করে বিদেশি বিনিয়োগকারীরা দেশের পুঁজিবাজার সম্পর্কে আগ্রহী হবেন।

বন্ড মার্কেট অবহেলিত। এর উন্নয়নে আপনার পরামর্শ কী?

বন্ড মার্কেটের উন্নয়নে আগে কিছু উদ্যোগ নেয়া হলেও সমন্বয় না থাকায় সুফল পাওয়া যায়নি। বিএসইসির বর্তমান চেয়ারম্যান আসার পর এটি নিয়ে আলাদাভাবে কাজ চলছে। বাজারে নতুন আসা ইসলামী শরিয়া বন্ড সুকুর’ নিয়ে কাজ চলছে। ভালো সাড়াও পাওয়া যাচ্ছে। এখন সমন্বয় করা হচ্ছে। ফলে আশা করছি, এই বাজার আরও সক্রিয় হবে।

মার্চেন্ট ব্যাংকগুলো দায়িত্ব যথাযথভাবে পালন করছে না বলে অভিযোগ উঠেছে। এ ব্যাপারে আপনার বক্তব্য কী?

অনেকেরই ধারণা, মার্চেন্ট ব্যাংকগুলোর কাজ শুধু পুঁজিবাজারে নতুন ইস্যু নিয়ে আসা। এটা ঠিক নয়। আমাদের অনেক কাজের মধ্যে অন্যতম কাজ হচ্ছে বিনিয়োগ সুরক্ষা দেয়া।

নিয়ম অনুযায়ী, প্রত্যেক মার্চেন্ট ব্যাংককে প্রতি দুই বছর অন্তর একটি কোম্পানিকে প্রাথমিক গণপ্রস্তাব-আইপিওতে আনতে হবে, কিন্তু বর্তমানে আমরা তা পারছি না।

কারণ, অতীত রেকর্ড বিশ্লেষণে দেখা যায়, বছরে ১০ থেকে ১২টা নতুন কোম্পানি আইপিওতে আসে। অথচ মার্চেন্ট ব্যাংকের সংখ্যা ৬৩টি। এ হিসাবে বর্তমানের চেয়ে আরও অনেক কোম্পানির পুঁজিবাজারে আসার কথা। আমরা সন্ধান করলেও আগ্রহী নয় কোম্পানিগুলো। ফলে মার্চেন্ট ব্যাংকগুলো শেয়ার ইস্যুর কোটা পূরণ করতে পারছে না।

নতুন কোম্পানি তালিকাভুক্ত না হওয়ায় পেছনে কারণ কী বলে আপনি মনে করেন?

সাম্প্রতিক সময়ে অনেকগুলো নতুন কোম্পানি পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত হয়েছে। এখন আলোচনা চলছে ঘন ঘন আইপিওর অনুমোদন দিলে বিনিয়োগকারীদের অর্থ আটকে থাকবে। গত বছর যখন বাজার মন্দা চলছিল তখন আইপিও বন্ধ করে দেয়া হয়।

এখন আইপিও দ্রুত অনুমোদন পাচ্ছে। ফলে কোনো সমস্যা হচ্ছে না। বাজার বড় হলে আইপিও কোনো বিষয় না। আইপিও হচ্ছে বাজারের প্রাণ। আইপিও বাড়লে নতুন বিনিয়োগকারী আসবে, নতুন ফান্ড তৈরি হবে। বাজারের গতিশীলতা বাড়াবে।

মার্চেন্ট ব্যাংকগুলো সবসময় নতুন কোম্পানি তালিকাভুক্ত করার জন্য বিভিন্ন কোম্পানির সন্ধান করে। কোনো কোম্পানি আসতে না চাইলে জোর করে নিয়ে আসা ঠিক হবে না।

আমরা চাই, পুঁজিবাজারে বেশি কোম্পানি তালিকাভুক্তির চেয়ে লাভজনক প্রতিষ্ঠানগুলো আসুক। ভালো ও মানসম্পন্ন কোম্পানি আসলে বাজারে গভীরতা ও বিনিয়োগকারীদের আস্থা বাড়বে। দেশের অর্থনীতির উন্নতি হবে।

পুঁজিবাজারের টেকসই উন্নয়নে ১৫ হাজার কোটি টাকার দুটি আলাদা তহবিল গঠনের প্রস্তাব করেছে বিএসইসি। এ তহবিলের প্রয়োজনীয়তা সম্পর্কে বলুন।

এর উদ্দেশ্য হচ্ছে বাজারে তারল্য বাড়ানো। দীর্ঘসময় পুঁজিবাজার নেতিবাচক থাকার কারণে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগের সক্ষমতা কমে গেছে। এটা বাড়ানোর সহজ পন্থা হচ্ছে তহবিল গঠন। পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা- বিএসইসি সেটা নিয়ে কাজ করছে।

মাননীয় অর্থমন্ত্রী এবারের বাজেটে পুঁজিবাজারে কালো টাকা (অপ্রদর্শিত অর্থ) বিনিয়োগের সুযোগ রেখেছেন। এতে করে অর্থের জোগান বাড়বে। এছাড়া ব্যাংকগুলোকে ২০০ কোটি টাকা অতিরিক্ত বিনিয়োগের সুযোগ করে দেয়া হয়েছে। পর্যায়ক্রমে বিভিন্ন দিক থেকেও তহবিল আসবে।

অনেকেই বলেন স্থিতিশীল পুঁজিবাজার দেখতে চাই। বাস্তবে সেটা কখনও সম্ভব নয়। কারণ, পুঁজিবাজার সব সময় গতিশীল। পুঁজিবাজার যদি স্থিতিশীল হয় তাহলে কেউ এখানে বিনিয়োগ করবে না। পুঁজিবাজারে শেয়ারের দাম কমবে, না হয় বাড়বে। দাম কমলে আপনি কিনবেন, আর বাড়লে বিক্রি করবেন। এটাই স্বাভাবিক প্রবণতা বাজারের। আমরা চাই গতিশীল পুঁজিবাজার।

করোনাভাইরাস প্রাদুর্ভাবে পুঁজিবাজারের ক্ষতি সম্পর্কে বলুন।

সাড়ে তিনশর মতো ব্রোকারেজ হাউজ। ৬৩টি মার্চেন্ট ব্যাংক। ৪০টির মতো অ্যাসেট ম্যানেজমেন্ট কোম্পানি রয়েছে। করোনা মহামারির প্রভাবে প্রতিষ্ঠানগুলোর হাজার কোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে। লেনদেনে কমে যাওয়ায় সরকারের রাজস্ব আহরণ কমে গেছে।

শেয়ারের সমবণ্টন, ডিজিটাল বুথ পরিচালনাসহ বেশ কিছু সিদ্ধান্ত নিয়েছে বিএসইসি। বাজার চাঙা করতে এসব পদক্ষেপ কতটুকু কার্যকর ভূমিকা রাখবে?

যে কোনো বিষয় শুরুর আগে আমরা নেতিবাচক চিন্তা করি। তা না করে ইতিবাচক কাজ করা উচিত।

ব্রোকারেজ হাউজ ও মার্চেন্ট ব্যাংকের কাজ হচ্ছে বিনিয়োগকারীর অ্যাকাউন্ট করে বিনিয়োগের সুযোগ করে দেয়া। পাশাপাশি পুঁজিবাজার সম্পর্কে সচেতনতা তৈরি করা।

১৯৯৬ সালের কেলঙ্কারি ও পরবর্তী ২০১০ সালে বাজারে মহাধসের জন্য যে সব ভুল-ত্রুটি ছিল, তা থেকে শিক্ষা নিতে হবে। তাহলে সমস্যাগুলো আর সামনে আসবে না। ঝুঁকি থাকবে, তবে সেই ঝুঁকি হবে বাস্তবসম্মত ও গঠনমূলক।

সবার জন্য শেয়ারের সমবণ্টনের নতুন ব্যবস্থা বাস্তবসম্মত হবে না। এটি কার্যকর হলে শেয়ারের চাহিদা ও জোগানের ভারসাম্যে কিছুটা হেরফের হবে। যদি শেয়ারের চাহিদা ও জোগানের ভারসাম্য রক্ষা করতে হয় তাহলে লটারির মাধ্যমে বরাদ্দ দেয়াই উত্তম।

অনেক উদ্যোগ নিয়েও কারসাজি বন্ধ করা যাচ্ছে না। এক্ষেত্রে সমস্যা কোথায়?

পুঁজিবাজারে একটা শ্রেণি আছে যারা ট্রেডিংয়ের (লেনদেনের) সঙ্গে সম্পৃক্ত। যারা ট্রেড করে তাদের আচরণ আর যারা বিনিয়োগ করে তাদের আচরণ এক হবে না। বুঝতে হবে কোনটা কারসাজি, আর কোনটা কারসাজি না।

বিনিয়োগের জন্য কারো মাধ্যমে প্রভাবিত হওয়া যাবে না। কারসাজি সম্পর্কে সুনির্দিষ্ট অভিযোগ থাকলে তা নিয়ন্ত্রক সংস্থাকে জানানোর সুযোগ আছে।

বিএসইসি এসব বিষয়ে অনেক সচেতন। সংস্থাটি সফটওয়ারে আধুনিকায়ন করেছে। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ- ডিএসই তাদের ওয়েবসাইটে আলাদা একটি জায়গা রেখেছেন যেখানে অভিযোগ দেয়া যায় এবং সেগুলো প্রতিদিনই মনিটরিং করা হয়।

বিনিয়োগকারীদের জন্য আপনার পরামর্শ কী?

জেনেশুনে, বুঝে, যাচাই-বাছাই করে বিনিয়োগ করতে হবে। কারো দ্বারা প্রভাবিত হওয়া যাবে না। দ্রুত লাভবান না হয়ে সুচিন্তিতভাবে নির্দিষ্ট সময়ের জন্য বিনিয়োগ করা উচিত। তা হলে লাভবান হওয়ার সম্ভাবনা থাকবে। দ্রুত লাভবান হতে গিয়ে ভুল সিদ্ধান্তে উপনীত হওয়া যাবে না। তাহলে কারসাজির ফাঁদে পড়ার আশঙ্কা রয়েছে।

নতুন বছরে পুঁজিবাজার থেকে প্রত্যাশা অনেক। এখন আমাদের বাজারের যে পরিধি, যে পরিমাণ বিনিয়োগকারী আছেন, যে পরিমাণ প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগ আছে, তাতে প্রতিদিন লেনদেন

দুই হাজার কোটি টাকা ছাড়িয়ে যাওয়াটা খুবই স্বাভাবিক। দেশে নিবন্ধিত কোম্পানির সংখ্যা দেড় লাখের বেশি। কিন্তু পুঁজিবাজারে তিনশ কোম্পানি তালিকাভুক্ত। আরও বিপুল সংখ্যক কোম্পানির তালিকাভুক্ত হওয়ার সুযোগ আছে। এতে করে পুঁজিবাজারের গভীরতা বাড়বে। দেশি-বিদেশি বিনিয়োগকারীদের অংশগ্রহণ বাড়বে।

সার্বিকভাবে পুঁজিবাজার সম্পর্কে আপনার মূল্যায়ন কী?

বিদায়ী ২০২০ সালের শেষ দিকে বাজার তুলনামূলকভাবে ভালো ছিল। এক বছরের ব্যবধানে প্রবৃদ্ধি হয়েছে ২১ শতাংশ। বাজার ‍মূলধন বর্তমানে ৪ লাখ ৪৮ হাজার কোটি টাকা। দৈনিক লেনদেনের ক্ষেত্রেও অনেক উন্নতি হয়েছে। আইপিওতে অগ্রগতি হয়েছে। শেয়ারের সর্বনিম্ন দাম (ফ্লোর প্রাইস) বেঁধে দেয়ায় কোভিড-পরবর্তী শেয়ার বাজার পরিস্থিতির উন্নতি হয়েছে।

শেয়ার করুন

মন্তব্য