কিলো ফ্লাইট: মুক্তিযুদ্ধে আকাশ জয়ের গল্প

বাংলাদেশের প্রথম বিমানবহর কিলোফ্লাইটের সদস্যরা। ফাইল ছবি

কিলো ফ্লাইট: মুক্তিযুদ্ধে আকাশ জয়ের গল্প

মুক্তিযুদ্ধের সময় বাংলাদেশ বিমানবাহিনীর যাত্রা শুরু ভারতের নাগাল্যান্ডের ডিমাপুরের পরিত্যক্ত বিমানঘাঁটিতে। দুটি বেসামরিক বিমান আর হেলিকপ্টারকে মডিফাই করে তৈরি হয় বাংলাদেশের প্রথম বিমানবহর। নাম দেয়া হয় কিলো ফ্লাইট।

দেশকে স্বাধীন করতে পাকিস্তানি বিমান বাহিনীতে কাজ করা বাঙালি অফিসার আর সেনাদের অবদানও কোনো অংশেই কম নয়।

শোষণ-বঞ্চনায় পাকিস্তানি বিমান বাহিনী ও সিভিল এভিয়েশনে কর্মরত বাঙালিরাও ছিলেন ক্ষুব্ধ।

যুদ্ধ যখন শুরু হয়ে যায়, তখন তারা মন দেন নিজেদের বিমান বাহিনী গঠনে। প্রায় ৫০০ জন সৈনিক ও ৩৫ জন অফিসার পশ্চিম পাকিস্তান থেকে পালিয়ে আসেন যুদ্ধ করতে।

একই পথ ধরেছিলেন পাকিস্তান ইন্টারন্যাশনাল এয়ারলাইন্সসহ সিভিল এভিয়েশনে কর্মরত ১৭ জন পাইলটও।

স্থলবাহিনীর তুলনায় বিমান বাহিনী তৈরির কাজটি জটিল। আন্তরিকতা আর সাহসের পাশাপাশি দরকার অবকাঠামো, বিমান, অর্থকড়ি, যার কোনোটি ছিল না সে সময়ের প্রবাসী বাংলাদেশ সরকারের।

তবে মুক্তিবাহিনী গড়ে তুলতে সহায়তা দেয়া ভারত হাত বাড়ায় বিমান বাহিনী গঠনেও। ১৯৭১ সালের ২৮ সেপ্টেম্বর মাসে আসে সেই কাঙ্ক্ষিত ক্ষণ। ভারতের নাগাল্যান্ডের ডিমাপুরের পরিত্যক্ত বিমানঘাঁটিতে অত্যন্ত গোপনীয়তার সঙ্গে জন্ম নেয় বাংলাদেশ বিমান বাহিনী। প্রথম যে বিমানবহর যুক্ত হয় তার নাম দেয়া হয় ‘কিলো ফ্লাইট’।
কিলো ফ্লাইট: মুক্তিযুদ্ধে আকাশ জয়ের গল্প

কিলো ফ্লাইটে বিমান চালনা ও অপারেশনের জন্য সরাসরি দায়িত্বপ্রাপ্ত ছিলেন নয় জন। স্বাধীন বাংলা তাদের স্বীকৃতি দিয়েছে বীর উত্তম ও বীর প্রতীক হিসেবে।

তারা হলেন এক নম্বর সেক্টরের মুক্তিযোদ্ধা ও কিলো ফ্লাইটের অধিনায়ক স্কোয়াড্রন লিডার সুলতান মাহমুদ (বীর উত্তম), ক্যাপ্টেন বদরুল আলম (বীর উত্তম), ক্যাপ্টেন শাহাবুদ্দিন আহমেদ (বীর উত্তম), ক্যাপ্টেন আকরাম আহমেদ (বীর উত্তম), ক্যাপ্টেন আলমগীর সাত্তার (বীর প্রতীক), ক্যাপ্টেন খালেক (বীর প্রতীক), ফ্লাইট লেফটেন্যান্ট মোহাম্মাদ শামসুল আলম (বীর উত্তম), ক্যাপ্টেন মুকিত (বীর প্রতীক) এবং ক্যাপ্টেন শরফুদ্দিন আহমেদ (বীর উত্তম)।

ক্যাপ্টেন শাহাবউদ্দিন আহমেদ এখন থাকেন রাজধানীর গুলশানের নিজ বাড়িতে। বিজয়ের মাসে ৭১ এর স্মৃতির আকাশে উড়াল দেন তিনি, সঙ্গী নিউজবাংলা।

মুক্তিযুদ্ধে কীভাবে এলেন?

আমি তখন পাকিস্তান ইন্টারন্যাশনাল এয়ারলাইন্সে (পিআইএ) পাইলট হিসেবে কাজ করি। পাকিস্তানিদের তুলনায় বাঙালি অফিসারদের অধিকারের জায়গাটা সবসময়ই থাকত ছোটো। প্রশিক্ষণ থেকে অন্যান্য সুযোগ সুবিধা সব জায়গায় ছিল বৈষম্য। এক পর্যায়ে বাধ্য হয়েই ১৯৬৮ সালে ইস্ট পাকিস্তান পাইলট অ্যাসোসিয়েশন গঠন করে বাঙালি পাইলটরা।
কিলো ফ্লাইট: মুক্তিযুদ্ধে আকাশ জয়ের গল্প

সেটাও খুব সহজ ছিল না। কাঠখড় পুড়িয়ে আদালতের বারান্দায় ঘুরে তবেই মিলেছিল নিবন্ধন। আমরা পাকিস্তানে বিশ্বাসী না এমন তকমা দিয়ে রাজনৈতিক রঙে রাঙানো হল পাইলটদের। ২৫ মার্চের নৃশংসতা আমাদের আর সহ্য হয় না। এরপর আমাদের অ্যাসোসিয়েশনের চার বাঙালি পাইলটকে মেরে ফেলল। এরপরই ঠিক করি যুদ্ধে যাব, স্বাধীন দেশ লাগবে।

সে সময় তো কারফিউ ছিল, কঠোর নজরদারি আপনাদের ওপর। ভারত পৌঁছালেন কীভাবে?

কিছুটা পায়ে হেঁটে, কিছুটা নৌকায় এভাবে পরিবার নিয়ে গ্রামের বাড়ি ফরিদপুর পৌঁছাই। সেখানে তাদের রেখে কুষ্টিয়া হয়ে বর্ডার পার হবার চেষ্টা করি।

পাকিস্তানিরা তখন হামলা চালিয়ে জ্বালিয়ে ছারখার করে দেয় গোটা কুষ্টিয়া অঞ্চল। সে সময় ভারতীয় কিছু সাংবাদিক কুষ্টিয়া আসেন সংবাদ সংগ্রহের জন্য। তাদের মধ্যে সাংবাদিক অনিল ভট্টাচার্যের সহায়তায় কলকাতায় পৌঁছাই।

সে সময় আপনারা সুসংগঠিত হলেন কী করে?

কলকাতার স্বনামধন্য শিশু চিকিৎসক সুজিত মুখার্জির বাড়িতেই আমাদের থাকার ব্যবস্থা হয়। সেখানে ২ নম্বর সেক্টরের কমান্ডার খালেদ মোশাররফের সঙ্গে দেখা হলে স্থল যুদ্ধে অংশ নিতে চাই বলি। তখন তিনি আমাদের বলেন, ‘এ কে খন্দকার সাহেব ব্যবস্থা করছেন পাইলটদের নিয়ে কিছু করার, অপেক্ষা করো।’

এর কিছুদিন পর আমাদের সঙ্গে ভারতীয় বিমান বাহিনীর অফিসাররা যোগাযোগ করে পাকিস্তানের এয়ারপোর্ট ও এভিয়েশন সম্পর্কে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য জেনে নেয়।

কিলো ফ্লাইট: মুক্তিযুদ্ধে আকাশ জয়ের গল্প

তাজউদ্দিন আহমেদ ও মুক্তিযুদ্ধের উপপ্রধান গ্রুপ ক্যাপ্টেন এ কে খন্দকারের চেষ্টায় বাংলাদেশ বিমান বাহিনী গঠনে সাহায্য করতে ভারত সরকার রাজি হয়।

নাগাল্যান্ডের ডিমাপুরে কীভাবে প্রশিক্ষণ নিলেন?

ভারতের নাগাল্যান্ডের ডিমাপুরে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পরিত্যক্ত বিমান ঘাঁটি ছিল। খুব গোপনে সেখানে আমাদের বেইস ক্যাম্প করে দেয় ভারত সরকার। চারপাশ পাহাড় আর ঘন জঙ্গলে আবৃত অব্যবহৃত রানওয়েতেই আমাদের স্বপ্নের শুরু।

বিমানবাহিনীর প্রধান হিসেবে নিযুক্ত হন এ কে খন্দকার সাহেব। বিভিন্ন সেক্টর থেকে ৫৮ জন বিমানসেনাকে কিলো ফ্লাইটের জন্য নিয়ে আসা হয়। এদের মধ্যে কিছু পিআইএ এবং প্ল্যান্ট প্রোটেকশন পাইলটও ছিলেন। আমরা নয় জন পাইলট যাদের তিন জন পাকিস্তান বিমানবাহিনী থেকে এবং ছয় জন পিআইএসহ অন্যস্থান থেকে পালিয়ে এসেছিলাম।

ভারত সরকারের পক্ষ থেকে পুরনো দুটি বিমান ও একটি হেলিকপ্টার দেয়া হয়েছিল আমাদের। এর মধ্যে একটি বিমান ছিল যোধপুরের মহারাজার দেয়া আমেরিকায় প্রস্তুতকৃত ডিসি-থ্রি ডাকোটা আর অন্যটি কানাডায় তৈরি ডিএইচথ্রি অটার বিমান। হেলিকপ্টারটি ছিল ফ্রান্সে তৈরি এলুয়েট থ্রি মডেলের। এগুলোর একটিও যুদ্ধ বিমান ছিল না, তাই এগুলোকে মডিফাই করতে হয়েছিল।

ডাকোটাটিকে ৫০০ পাউন্ড বোমা পরিবহনের উপযোগী করে তোলা হয়, কিন্তু পরে সেটিকে অপারেশনে পাঠানো হয়নি। অপারেশনের জন্য একদমই ফিট ছিল না বলে ওটাকে অস্থায়ী বাংলাদেশ সরকারের ব্যক্তিদের পরিবহনের কাজে লাগানো হয়।

কিলো ফ্লাইট: মুক্তিযুদ্ধে আকাশ জয়ের গল্প
কিলোফ্লাইটের যোদ্ধা ক্যাপ্টেন শাহাবউদ্দিন আহমেদ বলছিলেন পাকিস্তানিদের কীভাবে কাঁপুনি ধরিয়েছিলেন তারা

হেলিকপ্টারটিতে মেশিনগান এবং ১৪ টি রকেট ছোঁড়ার পাইলন বসানো হয়েছিল। অটার বিমানটির প্রতিটি ডানার নিচে সাতটি করে রকেট লাগানো হয়েছিল। পেছনের দরজা খুলে লাগানো হয়েছিল মেশিনগান, ফ্লোর কেটে ২৫ পাউন্ডের ১০টি বোমা বসানো হয়েছিল। হাত দিয়ে পিন খুলে নিক্ষেপ করতে হতো বোমাগুলো।

আমাদের ট্রেইনিং ছিল বেশ কঠিন। অপারেশনের সময় পাক বাহিনীর রাডার যেন আমাদের শনাক্ত করতে না পারে সে জন্য ২০০-২৫০ মিটারের চেয়ে বেশি উঁচুতে উড়া যেত না। আর আমাদের রাতের অন্ধকারে ফ্লাই করতে হতো। কারণ পাক বাহিনীকে অপ্রস্তুত করতে আমরা রাতেই সব অপারেশন করব এমন সিদ্ধান্ত ছিল।

রানওয়েতে কোন বাতি ছিল না। ঘন জঙ্গলে দিনের আলোতেই রানওয়ে খুঁজে বের করা কঠিন ছিল, রাতে তো অসম্ভব। সেই অসম্ভবকেই আমরা সম্ভব করেছি। পাশাপাশি চলেছিল নাইট ফায়ারিং বা রাতে অন্ধকারে টার্গেটে নিশানা লাগাবার কৌশলও রপ্ত করেছিলাম আমরা সবাই।

ভারতীয় বিমান বাহিনীর গ্রুপ ক্যাপ্টেন চন্দন সিং, স্কোয়াড্রন লিডার ঘোষাল, স্কোয়াড্রন লিডার সঞ্জয় কুমার চৌধুরী, ফ্লাইট লেফটেন্যান্ট সি এম সিংলা আমাদের সবকিছু তদারকি করতেন।

আপনারা কে কোন বিমানের দায়িত্বে ছিলেন?

স্কোয়াড্রন লিডার সুলতান মাহমুদ কিলো ফ্লাইটের কমান্ডার হিসেবে নিযুক্ত ছিলেন। তার সঙ্গে আমি ও ফ্লাইট লেফটেন্যান্ট বদরুল আলম হেলিকপ্টারে ছিলাম। প্রথমদিকে আমি কপ্টার চালাতে জানতাম না, একদিনের প্রশিক্ষণে রপ্ত করেছি।

ক্যাপ্টেন খালেক, ক্যাপ্টেন আলমগীর সাত্তার ও ক্যাপ্টেন মুকিত ডাকোটা বিমানটি এবং ফ্লাইট লেফটেল্যান্ট শামসুল আলম, ক্যাপ্টেন আকরাম আহমেদ ও ক্যাপ্টেন শরফুদ্দিন আহমেদ অটার বিমানের দায়িত্বে ছিলেন।

আপনাদের অপারেশনগুলো সম্পর্কে বলেন?

প্রথম আক্রমণের দিন প্রথমে ২৮ নভেম্বর ধার্য হলেও পরে সেটা ক্যানসেল হয়। ৩ ডিসেম্বর চট্টগ্রামের পতেঙ্গার ইস্টার্ন রিফাইনারি ও নারায়ণগঞ্জের গোদনাইল তেল ডিপোতে আক্রমণ চালানো হয়।

সুলতান মাহমুদ ও বদরুল আলমের হেলিকপ্টার নারায়ণগঞ্জে আর কো-পাইলট ও গানারসহ অটার বিমানটি নিয়ে শামসুল আলম চট্টগ্রামের পতেঙ্গার ইস্টার্ন রিফাইনারি তেল ডিপোতে সফল হামলা চালান।

চট্টগ্রামের হামলার পর আগুনের ফুলকি মিজোরাম থেকেও দেখা গেছে।

৪ ডিসেম্বর পাক-ভারত যুদ্ধ শুরু হয়। ৩ তারিখের অপারেশনের পর থেকে বাংলাদেশ বিমানবাহিনী ভারতীয় বিমানবাহিনীর সাথে যৌথভাবে অনেক অপারেশনে অংশ নেয়।

বাংলাদেশের আকাশটা প্রথমে স্বাধীন হয় ডিসেম্বরের ৫ তারিখে। ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে পাকিস্তানী বিমান বাহিনী একেবারে কোণঠাসা হয়ে পড়ে জ্বালানি তেল না পেয়ে।

এরপর ৬ ডিসেম্বর সিলেটের মৌলভীবাজারের পাকিস্তানি সেনা বহরে আক্রমণ করেছিলাম স্কোয়াড্রন লিডার সুলতান মাহমুদ আর আমি। তারা প্রস্তুতি নিচ্ছিল মুক্তিযোদ্ধাদের হামলা করবে বলে। আমরা অ্যাটাক শুরু করার আগেই পাকিস্তানিরা আমাদের উপর ফায়ারিং শুরু করে। আমাদের কাছে ১৪ টা রকেট ছিল, সবগুলোই নিক্ষেপ করে আমরা তাদের গুঁড়িয়ে দিয়েছিলাম।

ডিসেম্বরের ১২ তারিখ। নরসিংদীর রায়পুরায় বেশ কিছু হেলিকপ্টারে করে সেনা পারাপার করছিল ভারতীয় বিমান বাহিনী। তখন আমরা হেলিকপ্টার নিয়ে তাদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করছিলাম। হঠাৎ পাকিস্তানিরা বহর নিয়ে আসতে শুরু করে। আমরা তাৎক্ষণিক আক্রমণ করে তাদের প্রতিহত করি। সে অপারেশনে ২১ জন পাকিস্তানিকে আমরা হত্যা করেছিলাম।

আমাদের ভাগ্যও অনেক ভালো ছিল, আমরা কোন যোদ্ধা হারাইনি। অপারেশনে আমাদের বিমান ও হেলিকপ্টারে অনেক গুলি লাগত। আমরা বিমানের বডির সেসব গুলির ক্ষতের পাশে তারিখ লিখে রাখতাম। এক সময় আর লেখার জায়গা বাকি থাকল না।

আমরা কিলো ফ্লাইটের অধীনে ৫০ টির বেশি ফ্লাইট পরিচালনা করেছি।

কিলো ফ্লাইট নাম কেন ছিল?

এয়ার ভাইস মার্শাল এ কে খন্দকারের নামের কে অক্ষর নিয়ে আমরা অপারেশনটির নাম দিই। আর এভিয়েশনের ভাষায় কে হলো কিলো, যেমন এ কে বলা হয় আলফা।

যে স্বপ্ন নিয়ে কিলো ফ্লাইট হয়েছিল তার কতটা বাস্তবায়িত হয়েছে?

আমরা স্বাধীন দেশ পেয়েছি, নিজেদের বিমান বাহিনী হয়েছে। এমনকি আমাদের তিনটি বিমানের মধ্যে ডাকোটাটি দিয়ে স্বাধীনতার পর প্রথম এভিয়েশন হিসেবে বাংলাদের বিমানের সূচনা হয়েছে। সে অর্থে আমাদের চাওয়া পূরণ হয়েছে।

কিন্তু ৭৫ এ দেশের রূপকার বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করা হল, এমন দেশ তো আমরা কখনো চাইনি। আমরা অসাম্প্রদায়িক জাতি চাই। এটুকু হলে পূর্ণতা পাব।

আরও পড়ুন:
মুক্তিযুদ্ধ মন্ত্রণালয়ের নামে নিয়োগ, ব্যবস্থা নেয়ার নির্দেশ
‘ক্র্যাক’ থেকে ঢাকা কাঁপানো সেই দুর্ধর্ষ ক্র্যাক প্লাটুন
চাঁদপুরে স্বাধীনতার পতাকা ওড়ে ৮ ডিসেম্বর
ক্যাপ্টেন আকরামের মৃত্যুতে রাষ্ট্রপতি-প্রধানমন্ত্রীর শোক
লোহাগড়া মুক্তির স্বাদ পায় ৮ ডিসেম্বর

শেয়ার করুন

মন্তব্য