ফেসবুককে ছাড়িয়ে গেল টিকটক

ফেসবুককে ছাড়িয়ে গেল টিকটক

প্রথমবারের মতো ফেসবুককে ছাড়িয়ে গেল টিকটক। ছবি: রয়টার্স

জাপানি প্রতিষ্ঠান নিক্কেই এশিয়া নামের একটি প্রতিষ্ঠান জরিপ চালিয়েছে বিশ্বের শীর্ষ ডাউনলোড অ্যাপ নিয়ে। সেখানে ওই প্রতিষ্ঠান ২০১৮ সালের পর থেকে ২০২০ সাল পর্যন্ত সর্বোচ্চ ডাউনলোড হওয়া সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম নিয়ে জরিপ চালায়।

ডাউনলোডের হিসাবে বিশ্বের সবচেয়ে বড় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম প্লাটফর্ম ফেসবুককে ছাড়িয়ে গেছে ছোট ভিডিও শেয়ারিং অ্যাপ টিকটক।

জাপানি প্রতিষ্ঠান নিক্কেই এশিয়া নামের একটি প্রতিষ্ঠান জরিপ চালিয়েছে বিশ্বের শীর্ষ ডাউনলোড অ্যাপ নিয়ে। সেখানে ওই প্রতিষ্ঠান ২০১৮ সালের পর থেকে ২০২০ সাল পর্যন্ত সর্বোচ্চ ডাউনলোড হওয়া সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম নিয়ে জরিপ চালায়।

জরিপে বলা হয়েছে, ছোট ভিডিও তৈরির চীনা অ্যাপটি প্রথম উন্মোচন করা হয় ২০১৭ সালে। সে বছর টিকটকের মূল প্রতিষ্ঠান বাইটড্যান্স অ্যাপটিকে বৈশ্বিক হিসেবে চালু করে।

নতুন উচ্চতায় ওঠার সঙ্গে সঙ্গে টিকটক এই স্বল্প সময়ের শীর্ষস্থান দখল করেছে।

এর পরই রয়েছে ফেসবুক, হোয়াটসঅ্যাপ, ইনস্টাগ্রাম ও ফেসবুক ম্যাসেঞ্জার।

বিবিসির খবরে বলা হয়, ২০২০ সাল পর্যন্ত অ্যাপ আনিয়ার হিসাবে সর্বোচ্চ ডাউনলোড হওয়া পাঁচটি অ্যাপের চারটিই ফেসবুকের। একমাত্র টিকটক সেই তালিকায় শীর্ষে রয়েছে।

চীনে টিকটক অ্যাপটি ‘দোইন’ হিসেবে পরিচিত। সে অ্যাপও চীনে ডাউনলোড তালিকায় ২০২০ সালে শীর্ষ ছিল।

যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক রাষ্ট্রপতি ডোনাল্ড ট্রাম্প দেশটিতে টিকটক বন্ধের বিভিন্ন চেষ্টা করেন। নির্বাহী আদেশ জারি করে অ্যাপের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে বলেন ট্রাম্প।

বলা হয়, চীনা অ্যাপটি দেশটির ব্যবহারকারীদের মাধ্যমে তথ্য হাতিয়ে নিচ্ছে। সেই সঙ্গে দেশটিতে গুপ্তচরবৃত্তিও করছে।

পরে অবশ্য জো বাইডেন ক্ষমতায় এসে ট্রাম্পের সেই নির্বাহী আদেশ বাতিল করে দেন।

তারপরও দেশটিতে অন্যতম জনপ্রিয় অ্যাপের তালিকার শীর্ষে রয়েছে টিকটক।

করোনাভাইরাস মহামারি শুরু হলে মানুষের মধ্যে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম অ্যাপ ব্যবহারের প্রবণতা বেড়ে যায়।

ঘরবন্দি সময়ে ২০২০ সাল থেকে তাই টিকটকের জনপ্রিয়তা অন্য মাত্রা ছাড়ায়। এতে অ্যাপটির ডাউনলোড ছাড়িয়েছে ৩০০ কোটি।

বিশ্বের শীর্ষ ডাউনলোড সোশ্যাল অ্যাপ

টিকটক

ফেসবুক

হোয়াটসঅ্যাপ

ইনস্টাগ্রাম

ফেসবুক ম্যাসেঞ্জার
স্ন্যাপচ্যাট

টেলিগ্রাম
লাইকি

প্রিন্টারেস্ট

টুইটার

আরও পড়ুন:
টিকটকে কিশোরীর ছবি, দু’পক্ষের সংঘর্ষে আহত ৫০
বিপজ্জনক টিকটক চ্যালেঞ্জে শিশুর মৃত্যু
টিকটককে ছাড়িয়ে যেতে চায় কোয়াই
ভারতে তরুণীকে নির্যাতন: টিকটক হৃদয়ের সহযোগী অনিক কারাগারে
টিকটক হৃদয়ের মামলার তদন্ত প্রতিবেদন ৮ আগস্ট

শেয়ার করুন

মন্তব্য

১১ ঘণ্টা পর ইন্টারনেট ফিরল মোবাইলে

১১ ঘণ্টা পর ইন্টারনেট ফিরল মোবাইলে

টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষ বিটিআরসি থেকে জানানো হয়েছে, প্রথমে ঢাকায় মোবাইল ইন্টারনেট চালু করতে বলা হয়েছে। পরে পর্যায়ক্রমে সারা দেশেই তা চালু হবে। পরে ডাক ও টেলিযোগাযোগমন্ত্রী মোস্তাফা জব্বারও বিভিন্ন গণমাধ্যমকে এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

১১ ঘণ্টা বিচ্ছিন্ন থাকার পর অনলাইন দুনিয়ায় যুক্ত হওয়া যাচ্ছে মোবাইল ফোন থেকে।

শুক্রবার ভোর ৫টা থেকে বন্ধ করে দেয়া হয় মোবাইল ইন্টারনেট। বিকেল ৪টার পর থেকে আবার মোবাইলে ইন্টারনেট পেতে শুরু করেন রাজধানীর গ্রাহকরা।

টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষ বিটিআরসি থেকে জানানো হয়েছে, প্রথমে ঢাকায় মোবাইল ইন্টারনেট চালু করতে বলা হয়েছে। পরে পর্যায়ক্রমে সারা দেশেই তা চালু হবে।

পরে ডাক ও টেলিযোগাযোগমন্ত্রী মোস্তাফা জব্বারও বিভিন্ন গণমাধ্যমকে এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

ছুটির দিন ভোর থেকে মোবাইলে ইন্টারনেট ব্যবহার করা যাচ্ছিল না। বিষয়টি নিয়ে কোনো ঘোষণা না থাকায় ব্যবহারকারীদের বহুজন ফোনে কারিগরি সমস্যার কথা ভেবে ফোন রিস্টার্টও করেন। কিন্তু এতে কাজ হয়নি।

তবে মোবাইল ডাটা কাজ না করলেও ব্রডব্র্যান্ড ডাটা চালু ছিল। ওয়াই-ফাইয়ে মোবাইল ফোনকে যুক্ত করলে ইন্টারনেট ব্যবহার করা যাচ্ছিল।

বিষয়টি জানতে নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনের (বিটিআরসি) চেয়ারম্যান ও ভাইস চেয়ারম্যানের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করেও তাদের পাওয়া যায়নি।

পরে সংস্থাটির কমিশনার এ কে এম শহিদুজ্জামানের সঙ্গে কথা হয় নিউজবাংলার। তিনি বলেন, ‘বিষয়টি আমার আওতার মধ্যে পড়ে না, তবে আমি ভাইস চেয়ারম্যানের সঙ্গে এ নিয়ে কথা বলেছি। তিনি জানিয়েছেন, মোবাইল ইন্টারনেটের ক্ষেত্রে কিছু কারিগরি সমস্যা হচ্ছে। এটা যেকোনো সময় ঠিক হয়ে যাবে।’

মোবাইলে ইন্টারনেট না পাওয়া নিয়ে বাংলালিংক কাস্টমার কেয়ারে কল করে পাওয়া যায় ভিন্ন তথ্য। সেখান থেকে জানানো হয়, বিটিআরসির নির্দেশনায় মোবাইলে ইন্টারনেট বন্ধ রয়েছে।

তবে মোবাইল ইন্টারনেটে বিঘ্নের বিষয়ে সেটি চালুর বিষয়েও মোবাইল সেবাদানকারী কোম্পানি বা সরকারি সংস্থার পক্ষ থেকে কোনো আনুষ্ঠানিক বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

আরও পড়ুন:
টিকটকে কিশোরীর ছবি, দু’পক্ষের সংঘর্ষে আহত ৫০
বিপজ্জনক টিকটক চ্যালেঞ্জে শিশুর মৃত্যু
টিকটককে ছাড়িয়ে যেতে চায় কোয়াই
ভারতে তরুণীকে নির্যাতন: টিকটক হৃদয়ের সহযোগী অনিক কারাগারে
টিকটক হৃদয়ের মামলার তদন্ত প্রতিবেদন ৮ আগস্ট

শেয়ার করুন

মোবাইল ডেটায় বিভ্রাট

মোবাইল ডেটায় বিভ্রাট

প্রতীকী ছবি

রাজধানীর একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের কর্মী মোস্তাফিজ বলেন, ‘সকালে উঠে নিয়মিত ফেসবুক ব্রাউজ করতে গিয়ে দেখি, নেট কাজ করছে না। বেশ কয়েকবার ফোন রিস্টার্ট দিয়েও সমাধান হয়নি। পরে সহকর্মীদের কাছ থেকে জানলাম, তাদেরও একই অবস্থা।’

রাজধানীসহ বিভিন্ন জায়গায় মোবাইল ফোনে ডেটা ব্যবহার করে ইন্টারনেটে প্রবেশ করা যাচ্ছে না।

ব্যবহারকারীরা জানিয়েছেন, কয়েক দফা চেষ্টা করেও ইন্টারনেট সংযোগ পাননি তারা।

রাজধানীর একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের কর্মী মোস্তাফিজ বলেন, ‘সকালে উঠে নিয়মিত ফেসবুক ব্রাউজ করতে গিয়ে দেখি, নেট কাজ করছে না। বেশ কয়েকবার ফোন রিস্টার্ট দিয়েও সমাধান হয়নি। পরে সহকর্মীদের কাছ থেকে জানলাম, তাদেরও একই অবস্থা।’

ঢাকার বাইরে মোবাইল ইন্টারনেটের পরিস্থিতি জানতে কথা হয় নিউজবাংলার বরিশাল ব্যুরোর প্রধান তন্ময় তপুর সঙ্গে। তিনি বলেন, ‘মোবাইল ডেটা চলছে না। ব্রডব্যান্ডে কাজ করতে হচ্ছে।’

চট্টগ্রাম ব্যুরোর প্রধান সিফায়েত উল্লাহ বলেন, ‘ইন্টারনেট না থাকার কারণে সংবাদ সংগ্রহের কাজে স্পটে গিয়ে ছবি, ভিডিও পাঠানো যাচ্ছে না।’

কী বলছে বিটিআরসি

বিষয়টি জানতে নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনের (বিটিআরসি) চেয়ারম্যান ও ভাইস চেয়ারম্যানের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করেও তাদের পাওয়া যায়নি।

পরে সংস্থাটির কমিশনার এ কে এম শহিদুজ্জামানের সঙ্গে কথা হয় নিউজবাংলার।

তিনি বলেন, ‘বিষয়টি আমার আওতার মধ্যে পড়ে না, তবে আমি ভাইস চেয়ারম্যানের সঙ্গে এ নিয়ে কথা বলেছি। তিনি জানিয়েছেন, মোবাইল ইন্টারনেটের ক্ষেত্রে কিছু কারিগরি সমস্যা হচ্ছে। এটা যেকোনো সময় ঠিক হয়ে যাবে।’

মোবাইলে ইন্টারনেট না পাওয়া নিয়ে বাংলালিংক কাস্টমার কেয়ারে কল করে পাওয়া গেছে ভিন্ন তথ্য। কাস্টমার কেয়ার থেকে জানানো হয়, বিটিআরসির নির্দেশনায় মোবাইলে ইন্টারনেট বন্ধ রয়েছে।

আরও পড়ুন:
টিকটকে কিশোরীর ছবি, দু’পক্ষের সংঘর্ষে আহত ৫০
বিপজ্জনক টিকটক চ্যালেঞ্জে শিশুর মৃত্যু
টিকটককে ছাড়িয়ে যেতে চায় কোয়াই
ভারতে তরুণীকে নির্যাতন: টিকটক হৃদয়ের সহযোগী অনিক কারাগারে
টিকটক হৃদয়ের মামলার তদন্ত প্রতিবেদন ৮ আগস্ট

শেয়ার করুন

দেশের বাজারে ভিভো এক্স৭০প্রো ফাইভজি

দেশের বাজারে ভিভো এক্স৭০প্রো ফাইভজি

দেশের বাজারে ভিভোর নতুন ফোন। ছবি: সংগৃহীত

সামনে ৩২ মেগাপিক্সেলের সেলফি ক্যামেরা। রিয়ার-কোয়াড ক্যামেরা অ্যারেতে থাকছে ৫০ মেগাপিক্সেল+ ১২ মেগাপিক্সেল+ ১২ মেগাপিক্সেল+ ৮ মেগাপিক্সেলের ক্যামেরা সেটআপ।

দেশের বাজারে স্মার্টফোন নির্মাতা প্রতিষ্ঠান ভিভোর প্রিমিয়াম স্মার্টফোন ভিভো এক্স৭০প্রো ফাইভজি উন্মোচন করা হয়েছে।

বিশ্বখ্যাত লেন্স নির্মাতা প্রতিষ্ঠান জেইসের সঙ্গে সমন্বয় করে ভিভো এক্স৭০প্রো এনেছে প্রতিষ্ঠানটি।

ভিভো বাংলাদেশের সেলস ডিরেক্টর শ্যারন বলেন, ‘অপটিকস ও অপটো-ইলেকট্রনিক্সের শীর্ষস্থানীয় প্রতিষ্ঠান জেইস ও ভিভোর পার্টনারশিপ মোবাইল ফটোগ্রাফিতে অসাধারণ অভিজ্ঞতা দেবে।

‘ভিভো এক্স৭০প্রো এর মাধ্যমে ভিভো অত্যাধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করে মোবাইল ও প্রফেশনাল ফটোগ্রাফির দূরত্ব কমিয়ে এনেছে।’

ভিভো এক্স৭০প্রো স্মার্টফোনটিতে রয়েছে ৬ দশমিক ৫৬ ইঞ্চির ডিসপ্লে।

সামনে ৩২ মেগাপিক্সেলের সেলফি ক্যামেরা। রিয়ার-কোয়াড ক্যামেরা অ্যারেতে থাকছে ৫০ মেগাপিক্সেল+ ১২ মেগাপিক্সেল+ ১২ মেগাপিক্সেল+ ৮ মেগাপিক্সেলের ক্যামেরা সেটআপ।

স্থির ছবি বা ভিডিও ধারণের জন্য ভিভো এক্স৭০ প্রো স্মার্টফোনে রয়েছে আল্ট্র-সেন্সিং গিম্বল ক্যামেরা এবং গিম্বল স্ট্যাবিলাইজেশন ৩.০ প্রযুক্তি ব্যবহার করা হয়েছে।

ভিভো জানায়, ভিভো এক্স৭০ প্রো ফাইভজিতে আছে ভিআইএস ৫-অ্যাক্সিস আল্ট্রা স্টেবল ভিডিও প্রযুক্তি যা গিম্বল স্ট্যাবিলাইজেশনের ফলে দুর্দান্ত ছবি তোলা এবং ভিডিও অভিজ্ঞতা দেয়।

স্মার্টফোনটিতে আরও ব্যবহার করা হয়েছে মিডিয়াটেক ডাইমেনসিটি ১২০০ ভিভো চিপ। রয়েছে ৪৪৫০এমএএইচ ব্যাটারি, সঙ্গে ৪৪ ওয়াট ফ্ল্যাশচার্জ।

ভিভো এক্স৭০ প্রো ফাইভজি ফোনটির দাম ৭২ হাজার ৯৯০ টাকা।

আরও পড়ুন:
টিকটকে কিশোরীর ছবি, দু’পক্ষের সংঘর্ষে আহত ৫০
বিপজ্জনক টিকটক চ্যালেঞ্জে শিশুর মৃত্যু
টিকটককে ছাড়িয়ে যেতে চায় কোয়াই
ভারতে তরুণীকে নির্যাতন: টিকটক হৃদয়ের সহযোগী অনিক কারাগারে
টিকটক হৃদয়ের মামলার তদন্ত প্রতিবেদন ৮ আগস্ট

শেয়ার করুন

দেশে শাওমির নতুন স্মার্টফোন রেডমি ১০

দেশে শাওমির নতুন স্মার্টফোন রেডমি ১০

ফোনটির ৪+৬৪ জিবি সংস্করণের দাম ১৮ হাজার ৯৯৯ টাকা এবং ৬+১২৮ জিবির দাম ২০ হাজার ৯৯৯ টাকা। 

বাংলাদেশের বাজারে নতুন স্মার্টফোন উন্মোচন করেছে শাওমি। ‘রেডমি ১০’ মডেলের স্মার্টফোনটিতে রয়েছে ফ্ল্যাগশিপ লেভেলের ফিচার।

মঙ্গলবার ফোনটি দেশে উন্মোচন করেছে চীনা প্রযুক্তি জায়ান্টটি।

শাওমি বাংলাদেশের কান্ট্রি ম্যানেজার জিয়াউদ্দিন চৌধুরী বলেন, ‘গ্রাহকদের জীবনকে সমৃদ্ধ করতে প্রয়োজন সহজেই ব্যবহারযোগ্য উদ্ভাবন ও সর্বশেষ প্রযুক্তি। এমন বিষয়কে ফোকাস করে, ফ্ল্যাগশিপ গ্রেডের স্মার্টফোন ফিচারের সঙ্গে আমরা এনেছি রেডমি ১০।

‘এতে রয়েছে ৫০ মেগাপিক্সেলের ক্যামেরা ও ৫০০০এমএএইচ ব্যাটারি। রেডমি ১০ ডিভাইসে রয়েছে ৯০ হার্জ রিফ্রেশ রেট এবং উচ্চ-কর্মদক্ষতার হার্ডওয়্যার, যা এ রেঞ্জের স্মার্টফোনের মধ্যে অন্যতম প্রতিদ্বন্দ্বী করে তোলে।’

রেডমি ১০ স্মার্টফোনে দেয়া হয়েছে ৫০ মেগাপিক্সেলের আল্ট্রা-হাই-রেজ্যুলেশনের প্রাইমারি ক্যামেরা। সে সঙ্গে রয়েছে একটি ৮ মেগাপিক্সেলের আল্ট্র-ওয়াইড ক্যামেরা, ২ মেগাপিক্সেলের ম্যাক্রো ক্যামেরা এবং একটি ২ মেগাপিক্সেলের ডেফথ ক্যামেরা।

১৩ মেগাপিক্সেলের সামনের ক্যামেরায় নেয়া যাবে সুন্দর সব সেলফি; যাতে ব্যবহার করা যায় টাইম ব্রাস্ট, এআই বিউটিফিকেশনসহ নানা মোড।

রেডমি ১০ নিয়ে এসেছে বড় ধরনের ৬.৫ ইঞ্চির ডটড্রপ এফএইচডিপ্লাস রেজ্যুলেশনের ডিসপ্লে। এতে রয়েছে ৯০ হার্জের রিফ্রেশ রেট, যা চোখের পলকে স্ক্রলিং এবং সুইপ করতে দেয়। পেয়ার অ্যাডাপ্টিং সিঙ্ক প্রযুক্তিতে রেডমি ১০ স্বয়ংক্রিয়ভাবে যখন প্রয়োজন তখন রিফ্রেশ রেট বাড়িয়ে নেয়। সেই সঙ্গে রেডমি ১০ ডিভাইসে থাকা রিডিং মোড ৩.০ কনটেন্ট দেখার ক্ষেত্রে চোখকে প্রশান্তি দেয়।

ফোনটিতে দেয়া হয়েছে ২.০ গিগাহার্জের অক্টা-কোর মিডিয়াটেক হেলিও জি৮৮ প্রসেসর। রেডমি ১০ ডিজাইন করা হয়েছে গ্রাউন্ড পারফর্ম করার জন্যই। হ্যান্ডসেটটিতে রয়েছে মিইউআই ১২.৫ নির্ভর অ্যান্ড্রয়েড ১১।

স্মার্টফোনে স্মুথ পারফরম্যান্স দিতে প্রয়োজন বিশাল ব্যাটারি। সে দিকটা মাথায় রেখে ডিভাইসটিতে দেয়া হয়েছে ৫০০০ এমএএইচ ব্যাটারি, সঙ্গে ১৮ ওয়াটের ফাস্ট চার্জিং। এ ছাড়া বক্সে রয়েছে ২২.৫ ওয়াটের চার্জার।

১৮১ গ্রাম ওজনের স্লিক এবং স্টাইলিশ ডিজাইনের রেডমি ১০ হ্যান্ডসেটটি পাওয়া যাবে দুটি আকর্ষণীয় ম্যাট কার্বন গ্রে এবং টেক্সটচারড গ্লসি সি ব্লু রঙে।

হ্যান্ডসেটটি শাওমি অথোরাইজড স্টোর, পার্টনার স্টোর এবং রিটেইল চ্যানেলে পাওয়া যাবে ১৩ অক্টোবর থেকে।

ফোনটির ৪+৬৪ জিবি সংস্করণের দাম ১৮ হাজার ৯৯৯ টাকা এবং ৬+১২৮ জিবির দাম ২০ হাজার ৯৯৯ টাকা।

আরও পড়ুন:
টিকটকে কিশোরীর ছবি, দু’পক্ষের সংঘর্ষে আহত ৫০
বিপজ্জনক টিকটক চ্যালেঞ্জে শিশুর মৃত্যু
টিকটককে ছাড়িয়ে যেতে চায় কোয়াই
ভারতে তরুণীকে নির্যাতন: টিকটক হৃদয়ের সহযোগী অনিক কারাগারে
টিকটক হৃদয়ের মামলার তদন্ত প্রতিবেদন ৮ আগস্ট

শেয়ার করুন

‘এআইয়ের কাছে সহজে হারবে না মানবমস্তিষ্ক’

‘এআইয়ের কাছে সহজে হারবে না মানবমস্তিষ্ক’

নিউজবাংলার সঙ্গে আলাপচারিতায় গ্র্যান্ডমাস্টার এনামুল হোসেন রাজীব। ছবি: সাইফুল ইসলাম/নিউজবাংলা

গ্র্যান্ডমাস্টার রাজীব বলেন, ‘নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে কম্পিউটারের সঙ্গে মানুষ হিসাব করে পারবে না। কম্পিউটারের সঙ্গে মানুষের খেলা হওয়া উচিত টাইম লিমিট ছাড়া। তখন বোঝা যাবে যে, কম্পিউটার কতটা ভালো।’

বাংলাদেশে দাবার সবশেষ ও কনিষ্ঠতম গ্র্যান্ডমাস্টার এনামুল হোসেন রাজীব। ২০০৮ সালে গ্র্যান্ডমাস্টার নর্ম পাওয়া এ দাবাড়ু মনে করেন, দাবায় মানুষের বুদ্ধিমত্তাকে ছাড়িয়ে যাওয়া কঠিন হবে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা বা আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্সের (এআই)।

নিউজবাংলার সঙ্গে দাবা, নিজের ক্যারিয়ার ও এ সংক্রান্ত নানা বিষয়ে কথা বলেছেন গ্র্যান্ডমাস্টার রাজীব। নিউজবাংলার পাঠকদের জন্য তার সাক্ষাৎকারের চুম্বক অংশ তুলে ধরা হলো।

আপনার যাত্রার শুরুটা কেমন ছিল সেটা যদি জানাতেন...দাবায় কীভাবে আগ্রহ পেলেন?

ছোটবেলাতে দাবার বোর্ড দেখে এটার প্রতি কেন যেন এক ধরনের আগ্রহ বোধ করি। তারপরে বাবার সঙ্গে খেলা শুরু করি। সেখান থকেই দাবার প্রতি আকর্ষণের শুরুটা।



এখনকার তরুণদের, যারা আসলে নানা ডিভাইসে ভিডিও গেমস খেলে, তাদের কীভাবে দাবার প্রতি আগ্রহী করে তোলা সম্ভব?

দাবাও এখন ডিভাইস বেজড। বিভিন্ন ডিভাইস ব্যবহার করে এটা অনলাইনে খেলতে পারেন। বিশ্বের যেকোনো খেলোয়াড়ের সঙ্গে খেলা সম্ভব। তাদের আগ্রহী করে তোলার জন্য প্রথম আমাদের তরুণদের দাবা শেখাতে হবে। শুরুটা করিয়ে দিতে পারলে দেখা যাবে তারা ভিডিও গেমস খেলা বন্ধ করে দাবার প্রতি আকর্ষণ বোধ করছে।

দাবায় শারীরিক ফিটনেস কতটা জরুরি?

দাবায় ফিজিক্যাল ফিটনেস খুবই জরুরি। নয় রাউন্ডে প্রতিটা খেলা ৪-৫ ঘণ্টা করে খেলা শারীরিকভাবে ক্লান্তিকর। কিংবদন্তি ববি ফিশার বা এখনকার চ্যাম্পিয়ন দাবাড়ু ম্যাগনাস কার্লসেন ফিটনেসের বিষয়টিকে গুরুত্বের সঙ্গে নিয়েছেন।

আমাদের দেশে অবশ্য ফিটনেসের বিষয়টি এতটা গুরুত্বের সঙ্গে নেয়া হয় না। আমি নিজেও ফিটনেস নিয়ে যতটা করা প্রয়োজন ততটা করি না। কিন্তু খুবই দরকার।

দাবা টুর্নামেন্টের আগে কীভাবে প্রস্তুতি নেন?

প্রস্তুতিটা আসলে কয়েকটা ধাপে হয়। শুরুতে আমরা যদি জানি যে প্রতিপক্ষ কে, তাহলে তার খেলার ধরনের বিপক্ষে নির্দিষ্ট প্রস্তুতি নিতে হয়। যখন জানি না যে প্রতিপক্ষ কে হবেন, তাহলে নিজের সাধারণ প্রস্তুতিটা ভালো করার চেষ্টা করি। সাদা ঘুঁটি নিয়ে খেললে কেমন ওপেনিং খেলব বা কালো ঘুঁটি নিয়ে খেললে শুরুটা কেমন হবে সেটা অনুশীলন করি। এরপর টুর্নামেন্ট শুরু হলে পরের রাউন্ডে কার বিপক্ষে খেলব সেটা নিয়ে কাজ করার সুযোগ থাকে, কিন্তু সময় খুব বেশি থাকে না।

দাবার আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স (এআই) ডিপ ব্লু গ্যারি কাসপারভকে হারিয়েছিল। এখন গুগল জিরোর মতো অত্যন্ত শক্তিশালী সফটয়্যার আছে। আপনার কি মনে হয় একসময় এআই দাবা খেলায় মানুষের সক্ষমতাকে ছাড়িয়ে যাবে?

এখন একজন গণিতবিদের সঙ্গে যদি একটা কম্পিউটারের প্রতিযোগিতা করান, তাহলে গণিতবিদ কিন্তু পারবেন না। তাতে কিন্তু গণিতবিদের গুরুত্ব কমছে না। কম্পিউটারকে আমরা একটা টুল হিসেবে ব্যবহার করি। আর মানুষের সঙ্গে কম্পিউটারের যত প্রতিযোগিতা সেখানে সময় বেঁধে দেয়া থাকে। নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে কম্পিউটারের সঙ্গে মানুষ হিসাব করে পারবে না। কম্পিউটারের সঙ্গে মানুষের খেলা হওয়া উচিত টাইম লিমিট ছাড়া। তখন বোঝা যাবে যে কম্পিউটার কতটা ভালো।

আলফা জিরোর কথা বলেছেন আপনি। আরেকটা অত্যন্ত শক্তিশালী দাবা ইঞ্জিন আছে স্টকফিশ। এগুলো যে পর্যায়ে চলে গেছে তাতে হয়তো অনেকে ভাবতে পারেন যে সর্বোচ্চ উৎকর্ষে পৌঁছানো হয়েছে, কিন্তু ইঞ্জিনগুলোও তো একে অপরের সঙ্গে হারছে। এর মানে এই এআই ইঞ্জিনগুলো দাবা খেলাটা পুরো আয়ত্ত করতে পারেনি। একটা রহস্য রয়ে গেছে।

একটা দাবা খেলায় সম্ভাব্য চাল অসংখ্য। বলা হয় যে, দৃশ্যমান মহাবিশ্বের যতগুলো অণু আছে, তার চেয়েও বেশি চাল দেয়া সম্ভব দাবার এক খেলায়। কম্পিউটার যতই শক্তিশালী হোক, সহজ না বিষয়টা।

‘এআইয়ের কাছে সহজে হারবে না মানবমস্তিষ্ক’
শেখ হাসিনা আন্তর্জাতিক গ্র্যান্ডমাস্টার্স দাবার প্রথম রাউন্ডে খেলছেন এনামুল হোসেন রাজীব। ছবি: সাইফুল ইসলাম/নিউজবাংলা



দাবাড়ুদের লেখা বই পড়েন কি? কার বই ভালো লাগে?

আমি ববি ফিশারের ‘মাই সিক্সটি মেমরেবল গেমস’ অসংখ্যবার পড়েছি। আমি যখন শুরু করেছি তখন বই এতটা পাওয়া যেত না। তাই ওই একটা বই অনেকবার পড়তে হয়েছে। পরে অবশ্য গ্যারি কাসপারভের বই পড়েছি; মিখাইল তালের বই পড়েছি। বর্তমানে প্রচুর বই পাওয়া যায়। এর মধ্যে গ্যারি কাসপারভের ‘মাই গ্রেট প্রিডেসেসরস’-এর পাঁচটা খণ্ড আছে, যেটা আমি মনে করি যে, খুবই ভালো। কারপভের সঙ্গে নিজের (কাসপারভ) ম্যাচের বই লিখেছেন; নিজের খেলার ওপরে বই লিখেছেন। সেগুলোও দারুণ।

দাবা নিয়ে কখনো কোনো বই লিখবেন কি না?

ওই রকম নির্দিষ্ট কোনো পরিকল্পনা নেই। সময় ও সুযোগ থাকলে দাবা নিয়ে অবশ্যই কিছু লিখতে চাই।

আরও পড়ুন:
টিকটকে কিশোরীর ছবি, দু’পক্ষের সংঘর্ষে আহত ৫০
বিপজ্জনক টিকটক চ্যালেঞ্জে শিশুর মৃত্যু
টিকটককে ছাড়িয়ে যেতে চায় কোয়াই
ভারতে তরুণীকে নির্যাতন: টিকটক হৃদয়ের সহযোগী অনিক কারাগারে
টিকটক হৃদয়ের মামলার তদন্ত প্রতিবেদন ৮ আগস্ট

শেয়ার করুন

আন্তর্জাতিক ব্লকচেইন অলিম্পিয়াড শুরু

আন্তর্জাতিক ব্লকচেইন অলিম্পিয়াড শুরু

আগারগাঁওয়ের আইসিটি টাওয়ারে বিসিসি অডিটরিয়ামে ‘আন্তর্জাতিক ব্লকচেইন অলিম্পিয়াড ২০২১’ প্রতিযোগিতার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান। বিশেষ অতিথি ছিলেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহ্‌মেদ পলক। ছবি: নিউজবাংলা

আইসিটি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহ্‌মেদ পলক বলেন, ‘ব্লকচেইন অলিম্পিয়াড বাংলাদেশের বিজয়ী ১২টি দল এই আয়োজনের আন্তর্জাতিক পর্যায়ে অংশ নিচ্ছে, যা আমাদের জন্য গর্বের বিষয়।’ হংকং ব্লকচেইন সোসাইটির প্রেসিডেন্ট ড. লরেন্স মা বলেন, ‘এ বছর করোনা পরিস্থিতির জন্য এমন একটি আন্তর্জাতিক ইভেন্ট আয়োজন করা অনেক কঠিন ছিল। বাংলাদেশ এত সুন্দরভাবে এই কাজটা সফলতার সঙ্গে করতে পেরেছে, যা সত্যিই প্রশংসনীয়।’

তথ্য সংরক্ষণের আধুনিক উপায় ব্লকচেইন প্রযুক্তি সম্পর্কে তরুণদের উৎসাহ বাড়াতে দেশে শুরু হয়েছে তিন দিনের ‘আন্তর্জাতিক ব্লকচেইন অলিম্পিয়াড ২০২১’।

এবারের প্রতিপাদ্য হচ্ছে ‘অনুপ্রেরণামূলক ক্ষমতায়ন ও উদ্ভাবন। হংকং থেকে শুরু হওয়া বহুল প্রত্যাশিত এই অলিম্পিয়াড এবারই প্রথম হংকংয়ের বাইরে বাংলাদেশে আয়োজিত হচ্ছে।

শুক্রবার রাজধানীর আগারগাঁওয়ের আইসিটি টাওয়ারে বিসিসি অডিটরিয়ামে এ প্রতিযোগিতার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান। বিশেষ অতিথি ছিলেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহ্‌মেদ পলক।

তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগ, বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিল (বিসিসি), ব্লকচেইন অলিম্পিয়াড বাংলাদেশ এবং টেকনোহেভেন কোম্পানি লিমিটেড যৌথভাবে এই আয়োজন করছে।

ব্লকচেইন হচ্ছে তথ্য সংরক্ষণ করার একটি নিরাপদ এবং উন্মুক্ত পদ্ধতি। এটি একটি অপরিবর্তনযোগ্য ডিজিটাল লেনদেন, যা শুধু অর্থনৈতিক লেনদেনের জন্যই প্রযোজ্য নয়। এ প্রযুক্তি ব্যবহার করে যেকোনো কার্য-পরিচালনা রেকর্ড করা যেতে পারে। একবার লেজারে কোনো তথ্য প্রবেশ করলে স্থায়ীভাবে তা থেকে যায় এবং কখনো মুছে ফেলা যায় না।

অনুষ্ঠানে পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান বলেন, ‘শুধু স্বপ্ন দেখেই নয়, কঠোর পরিশ্রমের মাধ্যমেই নিজের ভবিষ্যৎ গড়তে হবে। চাইলে নিজেই নিজের ভবিষ্যৎ তৈরি করা যায়। এ বিষয়টি তরুণদের হাতেই আছে। কঠোর পরিশ্রমের পাশাপাশি চিন্তা, গবেষণা, বাইরে যাওয়া, অ্যাডভেঞ্চার, ঝুঁকিগ্রহণ, স্টার্টআপ ইত্যাদি ক্ষেত্রেও নিজেকে যুক্ত করতে হবে।’

আইসিটি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহ্‌মেদ পলক বলেন, ‘ব্লকচেইন অলিম্পিয়াড বাংলাদেশের বিজয়ী ১২টি দল এই আয়োজনের আন্তর্জাতিক পর্যায়ে অংশ নিচ্ছে, যা আমাদের জন্য গর্বের বিষয়। তরুণরাই ভবিষ্যতের অগ্রগতির মশাল বহনকারী। আমি বিশ্বাস করি, ২০২২ সালের আন্তর্জাতিক ব্লকচেইন অলিম্পিয়াডে আরও বেশি বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-ছাত্রী অংশ নিবেন।’

হংকং ব্লকচেইন সোসাইটির প্রেসিডেন্ট ড. লরেন্স মা বলেন, ‘এ বছর করোনা পরিস্থিতির জন্য এমন একটি আন্তর্জাতিক ইভেন্ট আয়োজন করা অনেক কঠিন ছিল। বাংলাদেশ এত সুন্দরভাবে এই কাজটা সফলতার সঙ্গে করতে পেরেছে, যা সত্যিই প্রশংসনীয়।’

বিসিসির নির্বাহী পরিচালক ও অতিরিক্ত সচিব ড. মো. আব্দুল মান্নানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের অতিরিক্ত সচিব ড. খন্দকার আজিজুল ইসলাম, আন্তর্জাতিক ব্লকচেইন অলিম্পিয়াড-২০২১ এর চেয়ারম্যান ও টেকনোহেভেন কোম্পানি লিমিটেডের এবং সিইও হাবিবুল্লাহ এন করিম, গ্লোবাল ব্লকচেইন বিজনেস কাউন্সিলের নির্বাহী পরিচালক সান্দ্রা রো, ব্র্যাক ইউনিভার্সিটির সিএসই বিভাগের অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ কায়কোবাদ।

আয়োজনের সহযোগী প্রতিষ্ঠান হিসেবে রয়েছে এফবিসিসিআই, বেসিস, আইবিএ, এসিআই লিমিটেড, ব্র্যাক ইউনিভার্সিটি, ইয়ূথ পলিসি ফোরাম ও একাত্তর টিভি।

আরও পড়ুন:
টিকটকে কিশোরীর ছবি, দু’পক্ষের সংঘর্ষে আহত ৫০
বিপজ্জনক টিকটক চ্যালেঞ্জে শিশুর মৃত্যু
টিকটককে ছাড়িয়ে যেতে চায় কোয়াই
ভারতে তরুণীকে নির্যাতন: টিকটক হৃদয়ের সহযোগী অনিক কারাগারে
টিকটক হৃদয়ের মামলার তদন্ত প্রতিবেদন ৮ আগস্ট

শেয়ার করুন

বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-২ উৎক্ষেপণ নির্ধারিত সময়েই: জব্বার

বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-২ উৎক্ষেপণ নির্ধারিত সময়েই: জব্বার

গাজীপুরে বাংলাদেশ স্যাটেলাইট কোম্পানি লিমিটেডের গ্রাউন্ড স্টেশন। ছবি: বিএসসিএল

মোস্তাফা জব্বার বলেন, বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ উৎক্ষেপণের মধ্য দিয়ে দুই বছর ধরে নিজেদের কারিগরি সহায়তায় ত্রুটি-বিচ্যুতি ছাড়াই সেবা দিয়ে যাচ্ছে। সে ধারাবাহিকতায় দ্বিতীয় স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণ করা হবে।

নির্দিষ্ট সময় অর্থাৎ ২০২৩ সালের মধ্যেই মহাকাশে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-২ উৎক্ষেপণ করা হবে বলে জানিয়েছেন ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার।

তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ উৎক্ষেপণের মধ্য দিয়ে দুই বছর ধরে নিজেদের কারিগরি সহায়তায় ত্রুটি-বিচ্যুতি ছাড়াই সেবা দিয়ে যাচ্ছে। সে ধারাবাহিকতায় দ্বিতীয় স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণ করা হবে।

রাজধানীর হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টালে বাংলাদেশ স্যাটেলাইট কোম্পানি লিমিটেড-বিএসসিএল আয়োজিত বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ দিয়ে দেশের বেসরকারি স্যাটেলাইট টিভি চ্যানেলের সম্প্রচার শুরুর দ্বিতীয় বর্ষপূর্তির আলোচনা সভায় এসব কথা জানান।

জব্বার বলেন, ‘মহাকাশে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-২ উৎক্ষেপণ, ফাইভ-জি নেটওয়ার্ক চালু এবং তৃতীয় সাবমেরিন ক্যাবল সংযোগ স্থাপনে যে প্রতিশ্রুতি নির্বাচনি ইশতেহারে দেয়া হয়েছিল, ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগ তিনটি প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়ন শুরু করেছে। এগুলো নির্ধারিত সময়ের মধ্যেই শেষ হবে।

‘গত দুই বছরে নিজেদের কারিগরি সহায়তায় স্যাটেলাইট সেবায় কোনো ত্রুটিবিচ্যুতি হয়নি। অচিরেই দ্বিতীয় স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণ করা হবে। নির্ধারিত সময়ের মধ্যে এটি সম্পন্ন করার সব প্রস্তুতিও নেয়া হয়েছে।’

বাংলাদেশ ২০১৮ সালের ১২ মে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ মহাকাশে উৎক্ষেপণ করে। এর মাধ্যমে বিশ্বের ৫৭তম দেশ হিসেবে স্যাটেলাইট ক্লাবে প্রবেশ করে দেশ। প্রথম স্যাটলাইট উৎক্ষেপণে খরচ হয় ২ হাজার ৯০২ কোটি টাকা।

সেই ধারাবাহিকতায় বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-২ উৎক্ষেপণের কার্যক্রম শুরু করে দেশ। গত জানুয়ারিতে সে লক্ষে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-২-এর ধরন নির্ধারণে ফ্রান্সের প্রাইসওয়াটারহাউসকুপার্সকে (পিডব্লিউসি) পরামর্শক হিসেবে নিয়োগ দিয়েছে বাংলাদেশ স্যাটেলাইট কোম্পানি লিমিডেট বা বিএসসিএল।

সে সময় বিএসসিএলের চেয়ারম্যান শাহজাহান মাহমুদের সঙ্গে পরামর্শক প্রতিষ্ঠানের ১ লাখ ৮৫ হাজার ডলার বা ১ কোটি ৫৬ লাখ টাকার চুক্তি হয়। চুক্তির শর্ত ছিল তিন মাসের মধ্যে প্রতিষ্ঠানটি স্যাটেলাইট সম্পর্কে তাদের মতামত দেবে।

বৃহস্পতিবারের সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ। বিশেষ অতিথি ছিলেন প্রধানমন্ত্রীর মুখ্যসচিব ড. আহমদ কায়কাউস, অনলাইনে যুক্ত হয়ে বক্তব্য দেন ডাক ও টেলিযোগাযোগ সচিব মো. আফজাল হোসেন এবং অ্যাসোসিয়েশন অফ টেলিভিশন চ্যানেল ওনার্স- অ্যাটকো সভাপতি অঞ্জন চৌধুরী। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বিএসসিএল-এর চেয়ারম্যান ড. শাহজাহান মাহমুদ।

ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার বলেন, ‘বেতবুনিয়ায় ভূ-উপগ্রহ কেন্দ্র প্রতিষ্ঠা, আইটিইউ ও ইউপিইউ-এর সদস্যপদ অর্জন, টিএন্ডটি বোর্ড প্রতিষ্ঠা, প্রযুক্তি নির্ভর শিক্ষা প্রবর্তনসহ বঙ্গবন্ধু ডিজিটাল বাংলাদেশের বীজ বপণ করে গেছেন। যার রূপ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।’

তিনি বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী স্পারসোর মাধ্যমে মহাকাশে স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণে উদ্যোগ নিয়ে ডিজিটাল প্রযুক্তি বিকাশের শক্তিশালী ভিত স্থাপন করেন। এরই ধারাবাহিকতায় ১২ বছরে ডিজিটাল প্রযুক্তি দুনিয়ায় বাংলাদেশ অনুকরণীয় দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে। কোভিডকালে বাংলাদেশের মানুষের সচল জীবনযাত্রা এবং প্রবৃদ্ধি অর্জনে বৈশ্বিক অবস্থানের মূল কেন্দ্রবিন্দু ছিল ডিজিটাল সংযোগ।’

আরও পড়ুন:
টিকটকে কিশোরীর ছবি, দু’পক্ষের সংঘর্ষে আহত ৫০
বিপজ্জনক টিকটক চ্যালেঞ্জে শিশুর মৃত্যু
টিকটককে ছাড়িয়ে যেতে চায় কোয়াই
ভারতে তরুণীকে নির্যাতন: টিকটক হৃদয়ের সহযোগী অনিক কারাগারে
টিকটক হৃদয়ের মামলার তদন্ত প্রতিবেদন ৮ আগস্ট

শেয়ার করুন